আবরার পরিবারের পাশে জাতীয় মানবাধিকার সমিতি কুষ্টিয়া  জেলা নেতৃবৃন্দ

বুয়েটের মেধাবী ছাত্র আবরার ফাহাদ রাব্বি’র নিজ গ্রাম কুষ্টিয়ার কুমারখালী উপজেলার কয়া ইউনিয়নের রায়ডাঙ্গা গোরস্থানে গতকাল সকালে কবর জিয়ারত শেষে পরিবারের সদস্যদের সমবেদনা জানান বাংলাদেশ জাতীয় মানবাধিকার সমিতি কুষ্টিয়া  জেলা শাখার নেতৃবৃন্দ। জেলা সভাপতি জান্নাতুল ফেরদৌস জিনিয়া ও সাধারণ সম্পাদক শাহারিয়া ইমন রুবেলের নেতৃত্বে উপস্থিত ছিলেন যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক রাব্বি আলামিন, দপ্তর সম্পাদক জুলিয়া পারভীন, সদস্য কনকসহ মাহফুজ্জামান তিতাস, সজল, শেখ সাহেদ হাসান প্রেম, নয়ন প্রমুখ। উল্লেখ্য, গত ৭ অক্টোবর বুয়েট ছাত্রলীগের কিছু উৎশৃংখল ছাত্রের হাতে নৃশংসভাবে হত্যার শিকার হয় কুষ্টিয়া কৃতিসন্তান আবরার ফাহাদ রাব্বি। সংবাদ বিজ্ঞপ্তি

পরিকল্পিতভাবে ছাত্র রাজনীতি বন্ধের পাঁয়তারা করছে সরকার – রিজভী

ঢাকা অফিস ॥ সরকার পরিকল্পিতভাবে ছাত্র রাজনীতি বন্ধের পাঁয়তারা করছে বলে অভিযোগ করেছেন বিএনপির জ্যেষ্ঠ যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী। আবরার ফাহাদ হত্যাকান্ডের পর বাংলাদেশ প্রকৌশল বিশ্ববিদ্যালয়ে ছাত্র রাজনীতি বন্ধের সমালোচনা করে তিনি বলেন, ছাত্রলীগের অপকর্ম দিয়ে ছাত্র রাজনীতি বা সাংগঠনিক রাজনীতি ক্যাম্পাসে বন্ধের উদ্যোগ চলছে। কারণ সরকার এটি করেছে পরিকল্পিতভাবে। বিরাজনীতিকরণের এটি একটি দৃষ্টান্ত। এটি বহু আগে ওয়ান-ইলেভেন থেকেই শুরু হয়েছে। একটি ক্ষেত্র প্রস্তুত করতে হবে, তাই ছাত্রলীগকে দিয়েই, নিজের সন্তানদের দিয়েই সেই ক্ষেত্র প্রস্তুত করলেন তারা। নয়া পল্টনে বিএনপির কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে গতকাল সোমবার দুপুরে এক সংবাদ সম্মেলনে রিজভী বলেন, ছাত্র রাজনীতি অপভ্রংশ অপরাজনীতি তথা সন্ত্রাস-দুর্নীতি এবং রক্তপাতের অজুহাতে সমগ্র ছাত্র রাজনীতি বন্ধ করে দেওয়াটা গভীর মাস্টারপ্ল্যানেরই অংশ। ছাত্র রাজনীতিকে যারা কলুষিত করেছে, মারামারি-দলাদলিকে যারা উৎসাহিত করেছে, ক্যাম্পাসে আধিপত্য প্রতিষ্ঠা বিস্তারে যারা মদদ দিয়েছে তারাই প্রকৃত ছাত্র রাজনীতিকে মানুষের চোখে হেয় করেছে, তারাই এখন সমগ্র ছাত্র রাজনীতিকে বন্ধ করে দিতে চাচ্ছে। তিনি বলেন, ছাত্রলীগের কদাচারের জন্য সমগ্র ছাত্র সমাজ বা ছাত্র রাজনীতি দায়ী হতে পারে না। এর জন্য বহু শতাব্দীর অ্যাকাডেমিক ফ্রিডমসহ বহু মুক্তি আন্দোলন সংগ্রামের পথিকৃৎ ছাত্র সমাজে ছাত্র রাজনীতিকে কাঠগড়ায় দাঁড় করানো ঠিক নয়। ছাত্রলীগের কর্মকা- প্রসঙ্গে তিনি বলেন, ছাত্র সমাজের সেই মহিমামন্ডিত ঐতিহ্য ম্লান করেছে বর্তমান ক্ষমতাসীন গোষ্ঠির ছাত্র সংগঠন। স্বাধীনতার পরপরই ব্যালট বাক্স ছিনতাই ও শহীদ মিনারে ছাত্রী লাঞ্ছনার মধ্য দিয়ে এই ছাত্রলীগ তাদের যাত্রা শুরু। তাদের উত্তরসূরিরাই বর্তমানে বিশ্ববিদ্যালয়ে হলে হলে প্রচলিত বিধিবিধানকে তোয়াক্কা না করে নিষ্ঠুর ও সর্বনাশা নির্যাতন ব্যবস্থা গড়ে তুলেছে। আর এটা সম্ভব হয়েছে সরকারের ছত্রছায়ায়। সরকারের প্রতি বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসনের নিরঙ্কুশ আনুগত্যের কারণেই ‘ছাত্রলীগ বিচারের তোয়াক্কা করছে না’ বলে মন্তব্য করেন রিজভী। দুর্নীতির বিরুদ্ধে অভিযান শুরু হয়েছে- আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক এবং সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদেরের এ বক্তব্যের সমালোচনা করে বিএনপির সিনিয়র যুগ্ম-মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী বলেন, ভোট দিতে না দেওয়া কি সুনীতি? এটাতো মহাদুর্নীতি। সরকারদলীয় ক্যাডারদের দিয়ে দিনে-দুপুরে ভোট জালিয়াতি মহাদুর্নীতির বহিঃপ্রকাশ। রুহুল কবির রিজভী অভিযোগ করেন, (গতকাল সোমবার) ঝিনাইদহ জেলার মহেষপুর ও চট্টগ্রামের সাতকানিয়াতে উপজেলা নির্বাচন অনুষ্ঠিত হচ্ছে। সেখানে ভোটারদের কেন্দ্রে ঢুকতে দেওয়া হয়নি। মহেষপুরে প্রত্যেকটি ভোট কেন্দ্র থেকে বিএনপি প্রার্থীর এজেন্টদের মারধর করে বের করে দেওয়া হয়েছে। রাস্তার মোড়ে-মোড়ে লাঠিসোটা ও ধারালো অস্ত্র নিয়ে দাঁড়িয়ে আছে আওয়ামী সন্ত্রাসীরা। একই অবস্থা সাতকানিয়াতেও। এ দুই উপজেলাতে আওয়ামী সন্ত্রাসীদের সঙ্গে পাল্লা দিয়ে পুলিশও ভোটারদের বের করে দিচ্ছে। এটা হলো ওবায়দুল কাদের সাহেবদের দুর্নীতির বিরুদ্ধে অভিযানের চিত্র। সংবাদ সম্মেলনে অন্যান্যের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন বিএনপির প্রকাশনা সম্পাদক হাবিবুল ইসলাম হাবিব, স্বেচ্ছাসেবক বিষয়ক সম্পাদক মীর সরফত আলী সপু, নির্বাহী কমিটির সদস্য আবু নাসের মোহাম্মদ রহমাতুল্লাহ, আমিনুল ইসলাম প্রমুখ।

 

মিরপুরে গ্রাহক সেবায় পল্লী বিদ্যুতের উঠান বৈঠক

আমলা অফিস ॥ কুষ্টিয়ার মিরপুর উপজেলায় গ্রাহক সেবায় পল্লী বিদ্যুতের উঠান বৈঠক অনুষ্ঠিত হয়েছে। গতকাল সোমবার দিনব্যাপি উপজেলার হালসা এলাকার বিভিন্ন স্থানে এ উঠান বৈঠক অনুষ্ঠিত হয়। কুষ্টিয়া পল্লী বিদ্যুত সমিতির মিরপুর জোনাল অফিসের উদ্যোগে “ শেখ হাসিনার উদ্যোগ, ঘরে ঘরে বিদ্যুৎ” এই শ্লোগানে মুজিব বর্ষ উপলক্ষ্যে বিশেষ সেবার অংশ হিসেবে কুষ্টিয়া পল্লী বিদ্যুৎ সমিতির মিরপুর জোনাল অফিসের সার্বিক কর্মকান্ড প্রচারের লক্ষ্যে এ উঠান বৈঠক অনুষ্ঠিত হয়। এতে কুষ্টিয়া পল্লী বিদ্যুৎ সমিতির মিরপুর জোনাল অফিসের ডেপুটি জেনারেল ম্যানেজার এনামুল হকের সভাপতিত্বে প্রধান অতিথির বক্তব্য রাখেন কুষ্টিয়া পল্লী বিদ্যুৎ সমিতির জেনারেল ম্যানেজার হারুন-অর-রশিদ। এসময় বিশেষ অতিথির বক্তব্য রাখেন কুষ্টিয়া পল্লী বিদ্যুৎ সমিতির এজিএম (এইচআর) মফিজুল ইসলাম, পল্লী বিদ্যুৎ সমিতির হালসা অফিসের ইনচার্জ আলতাফ হোসেন, ওয়ারিং পরিদর্শক হাসানুজ্জামান প্রমুখ। এসময় স্থানীয় গণ্যমান্য ব্যক্তিবর্গ, গ্রাহক ও সাধারন জনগন উপস্থিত ছিলেন। পরে পল্লী বিদ্যুৎ সমিতির পক্ষ থেকে গ্রাহক ও সাধারন মানুষের সচেতনতা বৃদ্ধির লক্ষ্যে লিফলেট বিতরন করা হয়।

ভেড়ামারায় মেয়াদোত্তীর্ণ বীজ ও ঔষধ রাখার দায়ে জ্যোতি বীজ ভান্ডার ও বিজয়া ঔষধালয়কে জরিমানা

আল-মাহাদী ॥ ভোক্তা অধিকার সংরক্ষণ অধিদপ্তরের উদ্যোগে গতকাল সোমবার দুপুরে কুষ্টিয়ার ভেড়ামারা বাজারে ভ্রাম্যমান আদালত পরিচালিত হয়। ভেড়ামারা উপজেলা নির্বাহী অফিসার ও নির্বাহী ম্যাজিষ্ট্রেট সোহেল মারুফ এ আদালত পরিচালনা করেন। এসময় উপস্থিত ছিলেন, ভোক্তা অধিকার সংরক্ষণ অধিদপ্তরের ম্যাজিষ্ট্রেট সেলিমুজ্জামান, ভেড়ামারা উপজেলা কৃষি সম্প্রসারণ অফিসার শাহানাজ ফেরদৌস ও ভেড়ামারা থানার এস.আই রিফাজউদ্দিন। ভ্রাম্যমাণ আদালত জ্যোতি বীজ ভান্ডারকে মেয়াদোত্তীর্ণ বীজপণ্য রাখার দায়ে নগদ ৫ হাজার টাকা ও বিজয়া ঔষধালয়কে ৩ হাজার টাকা অর্থদন্ড দেয়।

শঙ্কা কাটিয়ে বুয়েটে ভর্তি পরীক্ষা অনুষ্ঠিত

ঢাকা অফিস ॥ আবরার ফাহাদকে পিটিয়ে হত্যার প্রতিবাদে আন্দোলনে উত্তাল বুয়েট ক্যাম্পাসে কোনোরকম শঙ্কা ছাড়াই অনুষ্ঠিত হলো ২০১৯-২০২০ শিক্ষাবর্ষের ভর্তি পরীক্ষা। ভর্তি পরীক্ষার কারণে আন্দোলনকারীরা তাদের কার্যক্রম শিথিল করলে বুয়েট কর্তৃপক্ষ আজ ভর্তি পরীক্ষার আয়োজন করে। সোমবার (১৪ অক্টোবর) সকাল ৯টায় এই ভর্তি পরীক্ষা শুরু হয়। দুপুর ১২টা পর্যন্ত টানা তিন ঘণ্টা লিখিত পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হয়। স্থাপত্য বিভাগে ভর্তির জন্য আবেদনকারীদের দুপুর ২টায় অঙ্কন পরীক্ষা শুরু হবে। বিকেল ৪টা পর্যন্ত চলবে এই পরীক্ষা। এদিকে ভর্তি পরীক্ষা দিতে এসে সন্তোষ প্রকাশ করেছেন পরীক্ষার্থী ও অভিভাবকরা। ভর্তি পরীক্ষা শেষে আবীর নামে এক শিক্ষার্থী বলেন, ‘পরীক্ষা ভালো হয়েছে। কোনো রকম সমস্যায় পড়তে হয়নি।‘ বুয়েট ক্যাম্পাসে অবস্থান করে দেখা যায়, বেলা ১১টা ৫৫ মিনিটে একবার ওয়ার্নিং দেয়া হয় পরীক্ষার্থীদের। এরপর পাঁচ মিনিট পর ১১টা ৫৯ মিনিটে পরীক্ষা সমাপ্তির ঘণ্টা বাজে। এর আগে সকাল থেকেই পরীক্ষার্থী ও অভিভাবকদের ভিড় ছিল বুয়েট ক্যাম্পাসে। সকাল ৯টায় পরীক্ষার্থীরা পরীক্ষা দিতে কক্ষে প্রবেশ করলে অভিভাবকরা বাইরে অবস্থান নেন। পরীক্ষার্থী ও অভিভাবকদের জন্য ফ্রি পানির ব্যবস্থা করে বুয়েট কর্তৃপক্ষ। এছাড়াও অভিভাবকদের জন্য বসার সুব্যবস্থাও রাখে কর্তৃপক্ষ। বুয়েটে রাসায়নিক প্রকৌশল বিভাগে ৬০, ধাতব প্রকৌশলে ৫০, সিভিল ইঞ্জিনিয়ারিংয়ে ১৯৫, পানিসম্পদ প্রকৌশলে ৩০, মেকানিক্যাল ইঞ্জিনিয়ারিংয়ে ১৮০, নৌস্থাপত্য ও সামুদ্রিক প্রকৌশলে ৫৫, শিল্প ও উৎপাদন প্রকৌশলে ৩০,  বৈদ্যুতিক ও ইলেকট্রনিক প্রকৌশলে ১৯৫, কম্পিউটার বিজ্ঞান ও প্রকৌশলে ১২০, বায়োমেডিক্যাল ইঞ্জিনিয়ারিংয়ে ৩০, স্থাপত্য বিভাগে ৫৫ এবং নগর ও অঞ্চল পরিকল্পনা বিভাগে ৩০টি আসন রয়েছে। বুয়েটে ভর্তি আবেদন শুরু হয় ৩১ আগস্ট। আবেদন ও ভর্তি ফি প্রদানের শেষ দিন ছিল ৯ সেপ্টেম্বর। ভর্তি পরীক্ষার যোগ্য প্রার্থীদের নামের তালিকা প্রকাশ করা হয় ১৮ সেপ্টেম্বর। আবেদনকারীদের ভেতর থেকে প্রথম ১২ হাজার জনকে ভর্তি পরীক্ষায় অংশগ্রহণের সুযোগ দেয়া হয়। ভর্তি পরীক্ষার ফল আগামী ২৬ অক্টোবর প্রদান করা হবে। ভর্তি পরীক্ষার অল্প কয়েক দিন আগে বিশ্ববিদ্যালয়টির শিক্ষার্থী আবরার ফাহাদকে পিটিয়ে হত্যার প্রতিবাদে আন্দোলনে উত্তাল হয়ে ওঠে বুয়েট ক্যাম্পাস। এ সময় আন্দোলনকারী শিক্ষার্থীরা ১০ দফা দাবি জুড়ে দেয়। তাদের দাবি মানা না হলেও ভর্তি পরীক্ষা হতে দেয়া হবে না বলেও জানায় আন্দোলনকারীরা। একপর্যায়ে বুয়েট কর্তৃপক্ষ তাদের দাবি-দাওয়া মেনে নিতে শুরু করলে ১৩ ও ১৪ অক্টোবর আন্দোলন শিথিল করে আন্দোলনকারীরা।

কুষ্টিয়া পৌর ৩নং ওয়ার্ড আওয়ামীলীগের কাউন্সিল অনুষ্ঠিত

নিজ সংবাদ ॥ কুষ্টিয়া শহর আওয়ামী লীগ ৩নং ওয়ার্ড শাখার ত্রি-বার্ষিক কাউন্সিল অনুষ্ঠিত হয়েছে। এতে প্রধান অতিথির বক্তব্য রাখেন বাংলাদেশ আওয়ামীলীগ জাতীয় পরিষদের সদস্য ও জেলা আওয়ামীলীগের সহ-সভাপতি আলহাজ্ব মতিয়ার রহমান মজনু। উদ্বোধন করেন শহর আওয়ামীলীগের সভাপতি তাইজাল আলী খান। প্রধান বক্তার বক্তব্য রাখেন কুষ্টিয়া সদর উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান ও শহর আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক আতাউর রহমান আতা। বিশেষ অতিথি ছিলেন জেলা আওয়ামীলীগের সহ-সভাপতি বেগম নূরজাহান, শেখ গিয়াস উদ্দিন আহমেদ মিন্টু, সাংগঠনিক সম্পাদক ডাঃ আমিনুল হক রতন, শেখ হাসান মেহেদী, সদর উপজেলা আওয়ামীলীগের সভাপতি এ্যাডঃ আ.স.ম আক্তারুজ্জামান মাসুম, জেলা আওয়ামীলীগের যুব ও ক্রীড়া বিষয়ক সম্পাদক খন্দকার ইকবাল মাহমুদ। রবিবার সন্ধ্যা সাড়ে ৬ টায় কুষ্টিয়া শহরস্থ ৪নং সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় মাঠে অনুষ্ঠিত এ কাউন্সিলে সভাপতিত্ব করেন শহর আওয়ামী লীগ ৩নং ওয়ার্ড শাখার সভাপতি কাউন্সিলর বদরুল ইসলাম বাদল। সার্বিক ব্যাবস্থাপনায় ছিলেন শহর আওয়ামী লীগ ৩নং ওয়ার্ড শাখার সাধারণ সম্পাদক মতিউর রহমান মতি। সঞ্চালনায় ছিলেন শহর আওয়ামী লীগ ৩নং ওয়ার্ড শাখার যুগ্ম-সম্পাদক এনামূল হক বাবু। এ সময় আওয়ামী লীগ ও এর অঙ্গ সহযোগি সংগঠনের শত শত নেতা-কর্মী উপস্থিত ছিলেন।

পাঁচ বছরের শিশু তুহিন হত্যায় ‘পরিবারের সদস্য’- পুলিশ

ঢাকা অফিস ॥ সুনামগঞ্জে পাঁচ বছরের শিশু তুহিন মিয়া হত্যায় পরিবারের ২/৩ জন সদস্যের সম্পৃক্ততা পাওয়ার কথা বলেছে পুলিশ। সোমবার সন্ধ্যায় দিরাই থানায় আয়োজিত এক সংবাদ সম্মেলনে এ তথ্য জানান সুনামগঞ্জের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মিজানুর রহমান। রোববার শেষ রাতে দিরাই উপজেলার রাজানগর ইউনিয়নের কেজাউড়া গ্রামের কৃষক আব্দুল বাসিতের ছেলে তুহিন মিয়াকে (৫) হত্যা করে লাশ গাছে ঝুলিয়ে রাখে অজ্ঞাত খুনিরা। এ ঘটনায় জিজ্ঞাসাবাদের জন্য সোমবার বিকালে তুহিনের বাবা আব্দুল বাসির, চাচা আব্দুল মসব্বির, নাসির উদ্দিন, চাচি খায়রুল নেছা, চাচাত বোন তানিয়া ও প্রতিবেশী আজিজুল ইসলামসহ সাতজনকে পুলিশ থানায় নিয়েছে। সংবাদ সম্মেলনে মিজানুর রহমান বলেন, “আমরা তুহিনের পরিবারের সাতজনকে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য নিয়ে এসেছিলাম। তাদের জিজ্ঞাসাবাদে ২/৩ জনের সম্পৃক্ততা আমরা পেয়েছি। যে ২/৩ জন হত্যাকান্ডের সঙ্গে জড়িত তারা পুলিশের কাছে বিষয়টি স্বীকার করেছে। “প্রতিহিংসাবশত হতে পারে, পূর্ব শক্রতার জের ধরে প্রতিপক্ষকে ফাঁসাতে হতে পারে, আবার মামলা সংক্রান্ত বিষয়ে এ হত্যাকান্ড ঘটতে পারে; তদন্তের স্বার্থে সবকিছু বলা যাচ্ছে না।” মিজানুর রহমান আরও বলেন, নিহতের বাবাসহ পরিবারের কয়েকজন সদস্য বিভিন্ন মামলার আসামি। এলাকায় তাদের একাধিক প্রতিপক্ষ রয়েছে। এক পক্ষ আরেক পক্ষকে ঘায়েল করতে চায়। তবে কারা হত্যাকান্ডে জড়িত তা এড়িয়ে যান অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মিজানুর রহমান। তিনি বলেন, “এখনও জিজ্ঞাসাবাদ করা হচ্ছে, সবাইকে আটক দেখানো হচ্ছে না। পুরোপুরি জিজ্ঞাসাবাদ শেষ হলে হত্যা মামলা দায়ের করা হবে।” রোববার রাতের খাবার খেয়ে তুহিনের পরিবারের সবাই ঘুমিয়ে পড়েন। রাত ৩টার দিকে তুহিনের চাচাত বোন সাবিনা বেগম ঘরের দরজা খোলা দেখে চিৎকার শুরু করলে পরিবারের সদস্যরা জেগে উঠে দেখেন তুহিন ঘরে নেই। খোঁজাখুঁজির পর বাড়ি থেকে কিছু দূরে মসজিদের পাশে একটি গাছে ঝুলন্ত অবস্থায় তার লাশ পাওয়া যায়। পুলিশ লাশ উদ্ধারের সময় শিশুটির পেটে দুইটি ছুরি গাঁথা ছিল। তার কান ও লিঙ্গও কেটে নেয় হত্যাকারীরা।

 

সুনামগঞ্জে ৫ বছরের শিশুকে নৃশংশভাবে হত্যা

ঢাকা অফিস ॥ সুনামগঞ্জের দিরাইয়ে পাঁচ বছরের এক শিশুকে নৃশংসভাবে হত্যা করে লাশ গাছে ঝুলিয়ে রাখা হয়েছে। গতকাল সেমাবার দিরাই থানার ওসি কে এম নজরুল জানান, গত রাতে এ হত্যাকান্ডের শিকার শিশু তুহিন রাজানগর ইউনিয়নের কেজাউড়া গ্রামের কৃষক আবদুল বাসিতের ছেলে। নিহতের স্বজনদের উদ্ধৃত করে ওসি জানান, গত রোববার রাতের খাবার খেয়ে ঘুমিয়ে পড়ে ওই পরিবারের সদস্যরা। রাত ৩টার দিকে তুহিনের চাচাত বোন সাবিনা বেগম ঘরের দরজা খোলা দেখে চিৎকার শুরু করে। চিৎকার শুনে পরিবারের সদস্যরা ঘুম থেকে উঠে দেখে তুহিন ঘরে নেই। খুঁজোখুঁজি করে বাড়ি থেকে কিছু দূরে মসজিদের পাশে একটি গাছের সাথে ঝুলন্ত অবস্থায় তার লাশ পাওয়া যায়। ঘটনাস্থলে পৌঁছে পুলিশ লাশ উদ্ধারের সময় শিশুটির পেটে দুইটি ছুরি গাঁথা রয়েছে দেখতে পায় বলে জানান ওসি। শিশুটির আত্মীয় ইমরান হোসেন জানান, খুনিরা শিশুটির কান ও লিঙ্গ কেটে নিয়েছে। হত্যার পর তাকে গাছে ঝুলিয়ে দিয়েছে। কারা এ ঘটনা ঘটিয়েছে, সে বিষয়ে তাৎক্ষণিকভাবে কোনো ধারণা দিতে পারেনি পুলিশ। তবে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য শিশুটির বাবাসহ সাতজনকে আটক করেছে পুলিশ। গতকাল সেমাবার দুপুরে তাদের আটক করে থানায় নিয়ে যাওয়া হয়। আটকরা হলেন- তুহিনের চাচা আব্দুল মছব্বির, জমশেদ মিয়া, নাসির মিয়া, জাকিরুল তুহিনের বাবা আব্দুল বাছির, চাচী ও চাচাতো বোনের নাম জানা যায়নি। সুনামগঞ্জের পুলিশ সুপার মিজানুর রহমান বলেন, জিজ্ঞাসাবাদের জন্য সাতজনকে থানায় নেওয়া হয়েছে। জিজ্ঞাসাবাদ শেষে সন্দেহজনক কিছু মনে না হলে তাদের ছেড়ে দেওয়া হবে।

কালুখালীর রতনদিয়া ইউপির ১নং ওয়ার্ডের উপ-নির্বাচনে সদস্য পদে সঞ্জয় কুমার হালদার জয়ী

ফজলুল হক ॥ রাজবাড়ীর কালুখালী উপজেলার ১নং রতনদিয়া ইউপির ১নং ওয়ার্ডের সদস্য পদে উপ-নির্বাচনে ফুটবল প্রতীক নিয়ে সঞ্জয় কুমার হালদার বেসরকারীভাবে নির্বাচিত হয়েছে। সকাল ৯টা থেকে শুরু হয়ে বিকাল ৫টা পর্যন্ত অনুষ্ঠিত এ নির্বাচনে ২২৯৭ জন ভোটারের মধ্যে ১৪৯৬টি বৈধ ভোট গৃহীত হয়। এর মধ্যে সঞ্জয় কুমার হালদার ফুটবল প্রতীক নিয়ে ৫৫৩ ভোট পেয়ে নির্বাচিত হয়েছে। তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী মোঃ রিয়াজুল ইসলাম মোরগ প্রতীক নিয়ে ৫৪০ ভোট ও খোকন শেখ ৩৭৯ ভোট প্রাপ্ত হয়। ভোট গ্রহণ ও গণনা শেষে ফলাফল ঘোষণা করেন প্রিজাইডিং অফিসার উপজেলা পল্লী উন্নয়ন কর্মকর্তা শেখ জাহাঙ্গীর আলম। এসময় সহকারী কমিশনার ভূমি ও এক্সিকিউটিভ ম্যাজিস্ট্রেট শেখ নুরুল আলম, উপজেলা নির্বাচন অফিসার মোঃ আঃ আলীম ও প্রার্থীগণের এজেন্টবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন।

গ্রাম্য নারীদের আলোকশিখা নূরজাহান ধর্মান্ধদের হামলায় ঘরছাড়া

নারায়ণগঞ্জ প্রতিনিধি ॥ কুসংস্কার জয় করে গ্রাম্যনারীদের আনতে চেয়েছিলেন আলোরপথে। করতে চেয়েছিলেন স্বাবলম্বী। এ পথে অনেকদূর এগিয়েও গিয়েছিলেন। কিন্তু গ্রামের মোল্লা-মাতব্বর আর ধর্মান্ধ হুজুরদের হামলায় থেমে গেছে সে দীপশিখা। নারায়ণগঞ্জের সোনারগাঁ উপজেলার প্রত্যন্ত গ্রামের এই আলোকশিখার নাম নূরজাহান। যিনি নিজেকে বিলিয়ে দিয়ে জীবনের ঝুঁকি নিয়ে স্বামী পরিত্যক্তা, গরিব-অসহায় আর বিধবা নারীদের শিখিয়েছিলেন নিজের পায়ে দাঁড়ানোর মন্ত্র।

নূরজাহান এখন এলাকাছাড়া। তাঁর সংগ্রামের গল্পটা যেন মালালা ইউসুফজাইয়ের মতোই। যিনি কুসংস্কারের বিরুদ্ধে প্রতিবাদ করে পিছিয়ে পড়া নারীদের স্বাবলম্বী করতে চেয়েছিলেন। ধর্মান্ধদের কারণে গ্রাম ছাড়লেও তাঁর অর্জন একেবারে কম নয়। স্বামী পরিত্যক্তা এই সাধারণ নারী এখন বহু নারীর কাছে অসাধারণ এবং প্রদীপশিখার মতোই। সবাইকে হাতের কাজ শেখান। তাঁতের শাড়ি বুনে স্বাবলম্বী করেছেন নিজ গ্রাম বাতপাড়াসহ পার্শ্ববর্তী এলাকা। কিন্তু অন্যের ঘর আলোকিত করতে গিয়ে নূরজাহানের নিজের ঘরে নেমে এসেছে চরম অমানিশা। এলাকার মোল্লা সম্প্রদায় ইতোমধ্যে গ্রামছাড়া করেছে তাঁকে। নিরূপায় নূরের গন্তব্য কোথায় তা জানেন না তিনি। এলাকা ছেড়ে আপাতত ঠাঁই মিলেছে তাঁর ভাগ্নের বাসায়। আশায় আছেন যদি কোনদিন পূরণ হয় তাঁর মনের আশা। কিন্তু ধর্মভীরুদের দল তাঁকে তাড়া করে ফিরছে। যেকোনোভাবে মারতে চায় তাঁকে। কারণ নূরজাহানের হাত ধরে গ্রাম আলোকিত হলে বন্ধ হয়ে যাবে ধর্মব্যবসা।

খোঁজ নিয়ে জানা গেল, নারায়নগঞ্জের সোনারগাঁ উপজেলার বাতপাড়া গ্রামে ছিল নূরজাহানের বাড়ি। সেখানকার পরিবেশ-প্রতিবেশ মিলে তাঁর বড় হওয়া, বেড়ে ওঠার গল্পটা ভিন্নরকম। বিয়ে হয়েছিল দরিদ্রঘরের মো. দুলালের সঙ্গে। একসন্তান হওয়ার পর দুলাল যৌতুকের জন্য চাপ দিতে থাকে। দিন যায় আর মারধোরও বাড়তে থাকে টাকার জন্য। বাবা মোহাম্মদ আলী আর মা রুমমালা বেগমের মৃত্যু হয়েছে অনেক আগেই। নিরুপায় নূরজাহান তাঁর বোনের ছেলের মাধ্যমে ঢাকায় একটি চাকরি খুঁজতে থাকে। এই সময়ের মধ্যে স্বামী মো. দুলাল তাঁকে তালাক দেয়। শুরু হয় নূরের নতুন পথচলা। অসুস্থ পিতা একবেলা খাবার জোটাতেও অক্ষম। অথচ শিশু কন্যাসহ দরিদ্র পিতার ঘরে চেপে বসে নূরজাহান। খেয়ে না খেয়ে দিন অতিবাহিত হতে থাকে। দারিদ্রের কষাঘাতে ধাক্কা খেতে খেতে একসময় ঘুরে দাঁড়ানোর স্বপ্ন দেখেন। শুরু হয় তাঁত বোনার প্রশিক্ষণ। সেই থেকে নারীদের স্বাবলম্বী করার নানামূখি উদ্যোগ নেন তিনি। অজপাড়াগ্রামের মানুষ স্বপ্ন দেখতে থাকেন ঘুরে দাঁড়ানোর।

কুসংস্কারাচ্ছন্ন হুজুরদের বাধা ডিঙিয়ে এগিয়ে চলে নূরজাহান। অল্পদিনেই বাড়তে থাকে নূরজাহানের সুখ্যাতি। ইতোমধ্যে জুটে যায় আরও অনেক স্বামী পরিত্যক্তা, গরিব-অসহায়। সবাইকে তিনি দিতে থাকেন স্বাবলম্বী হওয়ার পরামর্শ। ক্রমশ: এক থেকে বহু নারীর জীবন পাল্টাতে থাকে। এক সময়ের অসহায়েরা নতুন স্বপ্নে হন উজ্জিবিত। আর এতেই ক্ষুব্ধ হন গ্রামের একটি বিশেষ শ্রেণি। কারণ নূরজাহান নারীদের শিক্ষা দিতে থাকেন পরিবার পরিকল্পনা গ্রহণের জন্য। কুসংস্কার, ধর্মান্ধতা দূর করে প্রকৃত শিক্ষায় শিক্ষিত হতে আহ্বান জানান তাঁর গ্রামের অসহায় নারীদের। আর এতেই ক্ষুব্ধ হয়ে পড়ে সোনারগাঁর কিছু মোল্লা-মোড়লেরা। একাধিক ইমামের মাধ্যমে নূরজাহানের কর্মকান্ডের উপর ফতোয়া দেয়া হয়। নতুন করে আবারও সমস্যায় পড়েন নূর। নূরজাহান একটি গণমাধ্যমে সাক্ষাতকার দিয়ে বলেন, কেউ অশিক্ষিত মোল্লা হয়ে জন্মায় না। সমাজের নানান অসঙ্গতি তাকে মোল্লা বানিয়ে ফেলে। কারণে সে যদি শিশুকালে এটি বুঝতে পারতো তাহলে মোল্লা হতো না। শৈশবের খেলাধুলো, গান-বাজনার অভাব, খাদ্য সঙ্কট বাচ্চাদের এই পথে নিয়ে যায়। কিন্তু নূরজাহানের এ কথায় চরম নাখোশ হয় মোল্লারা। এ ঘটনার পর দ্বিতীয়বারের মতো গ্রাম ছাড়তে বাধ্য হয় নূরজাহান ও তাঁর মেয়ে। ঢাকার একটি বাড়িতে আশ্রয় মিললেও সেখানেও তাঁর স্বামী ও কতিপয় ধর্মান্ধ দুর্বৃত্তরা হামলার পরিকল্পনা করে। থানায় গেলেও মামলা নেয় না পুলিশ। স্থানীয় সাংবাদিকেরা তাঁর সম্পর্কে জানতে গেলে নূরজাহান বলেন, এখন আমার সাক্ষাতকার নিবেন না। তাতে আমি আরও বেশি ক্ষতিগ্রস্থ হবো। হয়তো কোন একদিন এই চক্রের ঘুম ভাঙবে। অথচ নূরজাহান এলাকা ছাড়া হওয়ায় উদ্বেগ-আতঙ্কে আছেন নারীরা। কারণে-অকারণে তাদেরকে হুমকি দেয়া হচ্ছে। তাঁত বুননের কাজ ছাড়তে চাপ দেয়া হচ্ছে। ইতোমধ্যে প্রাণের ভয়ে এলাকা ছাড়লেও মৃত্যুভয় তাড়া করে ফিরছে। জীবনের নিরাপত্তা চেয়ে স্থানীয় পুলিশ স্টেশনে গেলেও সুরক্ষা মেলেনি। গিয়েছেন ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান-মেম্বারের কাছে। উল্টো নাজেহাল হয়েছেন সেখানেও। উপরন্তু মাতব্বররাই যোগ দিয়েছে মৌলবাদীদের দলে। সেই থেকে মৃত্যুভয় পিছু ছাড়ছে না নূরজাহানের।

পাখির সঙ্গে ‘ধাক্কা’

 বাংলাদেশ বিমানের জরুরি অবতরণ

ঢাকা অফিস ॥ ঢাকার হযরত শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দর থেকে উড্ডয়নের পর বিমান বাংলাদেশ এয়ারলাইনসের একটি বিমান জরুরি অবতরণ করেছেন। বোয়িং ৭৩৭-৮০০ ‘ময়ূরপঙ্খী’ নামে উড়োজাহাজটি পাখির সঙ্গে আঘাতের (বার্ড হিট) কারণে জরুরি অবতরণ করা হয়েছে বলে বিমানবন্দর সূত্র জানায়। সোমবার সকালে এ ঘটনা ঘটে। তবে এ ঘটনায় কোনো হতাহত হয়নি। উড়োজাহাজটি সকাল ৮টা ২৫ মিনিটের দিকে ঢাকা থেকে সিঙ্গাপুরের (বিজি ০৮৪) উদ্দেশে ছেড়ে যায়। কিছু সময় পর পাখি আঘাত করায় উড়োজাহাজটি পুনরায় শাহজালালে ফিরে আসে। বিমানের উপমহাব্যবস্থাপক (জনসংযোগ) তাহেরা খন্দকার বলেন, ‘বার্ড হিট করায় উড়োজাহাজটি ফিরে এসেছে। এটি পরীক্ষা-নিরীক্ষা করার জন্য বিমানের হ্যাঙ্গারে পাঠানো হয়েছে। তিনি বলেন, ‘ময়ূরপঙ্খী’ ফিরে এলেও অন্য একটি উড়োজাহজে সকাল সাড়ে ১০টার দিকে যাত্রীদের নিয়ে সিঙ্গাপুরের উদ্দেশে পাঠানো হয়েছে। ফিরে আসা ওই উড়োজাহাজটির ফ্লাইটে ১৪৫ জন ইকোনমিক ও ১১ জন বিজনেস ক্লাসের যাত্রী ছিলেন। এ ছাড়া সাতজন ককপিক ও কেবিন ক্রু ছিলেন। এর আগে ১৯ সেপ্টেম্বর ল্যান্ডিং গিয়ারে সমস্যার কারণে বিমানের বোয়িং ৭৩৭-৮০০ উড়োজাহাজ ময়ূরপঙ্খী শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে জরুরি অবতরণ করেছিল।

পুলিশের ওপর বোমা হামলায় ২ মূল পরিকল্পনাকারী গ্রেফতার

ঢাকা অফিস ॥ সাম্প্রতিক সময়ে ঢাকায় ‘পুলিশকে লক্ষ্য করে’ হামলা কিংবা হামলা চেষ্টার যে ঘটনাগুলো ঘটেছে, সেসবের মূল পরিকল্পনা ও নেতৃত্বে মোহাম্মদপুর থেকে গ্রেফতার দুই জঙ্গিই ছিলেন বলে জানিয়েছে পুলিশের কাউন্টার টেরোরিজম ইউনিট। গত রেববার রাতে গ্রেফতার ‘নব্য জেএমবির সদস্য’ মো. মেহেদী হাসান তামিম এবং মো. আবদুল্লাহ আজমিরের কাছ থেকে প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে বেশকিছু তথ্য পাওয়ার কথাও জানিয়েছেন পুলিশ কর্মকর্তারা। কাউন্টার টেরোরিজম ইউনিটের প্রধান ও ডিএমপির অতিরিক্ত কমিশনার মনিরুল ইসলাম বলছেন, গত মাসে ফতুল্লার যে জঙ্গি আস্তানায় অভিযান চালানো হয়েছিল, সেখানে বসে তৈরি করা বোমাগুলোই ঢাকায় বিভিন্ন হামলায় ব্যবহার করা হয়েছে। দুই জঙ্গিকে গুলিস্তান ও সাইন্সল্যাব এলাকায় বোমা হামলায় জড়িত সন্দেহে গ্রেফতার করা হলেও মালিবাগের হামলা এবং পল্টন ও খামারবাড়িতে পুলিশ বক্সের কাছে বোমা পেতে রাখার পরিকল্পনা, বোমা তৈরি এবং হামলায় নেতৃত্ব দেওয়া- সবকিছুতেই তারা ছিলেন বলে জানিয়েছেন মনিরুল। গতকাল সেমাবার ডিএমপির মিডিয়া সেন্টারে এক সংবাদ সম্মেলনে এই পুলিশ কর্মকর্তা বলেন, তারা (মেহেদী ও আবদুল্লাহ) নব্য জেএমবির সামরিক শাখার সদস্য এবং দুজনই খুলনা প্রকৌশল বিশ্ববিদ্যালয় থেকে যন্ত্র প্রকৌশলে স্নাতক ডিগ্রিধারী। বিশ্ববিদ্যালয়ে পড়ার সময় তারা নিষিদ্ধ সংগঠনের সাথে যুক্ত হয় এবং ২০১৮ সালের ফেব্র“য়ারি মাসে তারা ভোলার একটি দুর্গম চরে প্রশিক্ষণ নেয়। গত ২৩ সেপ্টেম্বর নারায়ণগঞ্জের ফতুল্লা শিয়াচর এলাকায় তক্কার মাঠ সংলগ্ন একতলা একটি বাড়িতে অভিযান চালিয়ে ল্যাবরেটরির মতো সাজানো কক্ষের সন্ধান পায় কাউন্টার টেরোরিজম ইউনিট। সেখানে বিপুল পরিমাণ ইমপ্রোভাইসড এক্সক্লোসিভ ডিভাইস (আইইডি) পাওয়া যায়। ওই অভিযানে বাড়ির মালিক বাংলাদেশ ব্যাংকের অবসরপ্রাপ্ত একজন ডিজিএম জয়নাল আবেদীনের ছেলে ফরিদউদ্দিন রুমি ও তার স্ত্রী জান্নাতুল ফোয়ারা অনুকে গ্রেফতার করা হয়। রুমি ঢাকার আহসানউল্লাহ বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের মেকানিক্যাল ও প্রোডাকশন ইঞ্জিনিয়ারিংয়ের শিক্ষক আর তার ভাই জামালউদ্দিন রফিক খুলনা প্রকৌশল ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের (কুয়েট) শিক্ষার্থী। গত রেববার রাতে গ্রেফতার দুই জঙ্গি এই জামালউদ্দিন রফিকের নেতৃত্বেই নব্য জেএমবির একটি সামরিক শাখা প্রতিষ্ঠা করেন বলে জানান পুলিশ কর্মকর্তা মনিরুল। তারা ফতুল্লায় রফিকের বাসায় বোমা তৈরির একটি কারখানা তৈরি করে। গ্রেফতাররা পরস্পর যোগসাজশে তৈরি করা বোমা দিয়ে গুলিস্তান এবং সাইন্সল্যাবে হামলায় প্রত্যক্ষভাবে জড়িত বলে প্রাথমিকভাবে স্বীকার করেছে। এ ছাড়া মালিবাগের হামলায় এবং পল্টন ও খামারবাড়ি যে বোমা পাওয়া গেছে, সেসব তৈরিতে রফিককে সহায়তা করার কথাও তারা স্বীকার করেছে। মনিরুল বলেন, তারা স্বীকার করেছে, তাদের পরিকল্পনা এবং নেতৃত্বেই সাম্প্রতিক সময়ে ঢাকার বিভিন্ন স্থানে পুলিশের ওপর হামলা করা হয়েছে। ঢাকায় এসব হামলায় পাঁচজন জড়িত রয়েছে জানিয়ে তিনি বলেন, এদের মধ্যে তিনজন গ্রেফতার হয়েছে এবং এখনও দুজন পলাতক রয়েছে। ফতুল্লার জঙ্গি আস্তানা থেকে গ্রেফতার ফরিদউদ্দিন রুমি পল্টনে বোমা উদ্ধারের মামলায় আদালতে দেওয়া স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দিতে অন্য জঙ্গিদের নাম জানিয়েছেন বলে দাবি করেছেন পুলিশ কর্মকর্তা মনিরুল ইসলাম। এ বছর ঢাকায় প্রথম হামলার ঘটনাটি ঘটে ২৯ এপ্রিল রাতে গুলিস্তানে। সেখানে বোমা হামলায় আহত হন ট্রাফিক কনস্টেবল নজরুল ইসলাম, লিটন চৌধুরী ও কমিউনিটি পুলিশ সদস্য মো. আশিক। এরপর ২৬ মে মালিবাগে পুলিশের বিশেষ শাখা (এসবি) কার্যালয়ের সামনে দাঁড় করিয়ে রাখা পুলিশের গাড়িতে বোমার বিষ্ফোরণ ঘটলে এসআই রাশেদা খাতুন এবং এক রিকশাচালক আহত হন। ২৩ জুলাই খামারবাড়ি এবং পল্টনে ট্রাফিক পুলিশ বক্সের কাছে একই সময় দুইটি কার্টনে বোমার সন্ধান পায় পুলিশ। পরে সেগুলো নিষ্ক্রিয় করা হয়। আর সবশেষ গত ৩১ অগাস্ট মধ্যরাতে সায়েন্স ল্যাবরেটরি মোড়ে স্থানীয় সরকার মন্ত্রী তাজুল ইসলামের যাত্রাপথে বোমার বিস্ফোরণ ঘটানো হয়। তাতে একজন এএসআই এবং একজন কনস্টেবল আহত হন। প্রতিটি ঘটনার পরই মধ্যপ্রাচ্যভিত্তিক জঙ্গি সংগঠন আইএসের পক্ষ থেকে হামলার দায় স্বীকারের খবর গণমাধ্যমে এলেও পুলিশ তা বরাবরই নাকচ করে বলেছে, এসব ঘটনা ঘটাচ্ছে এ দেশিয় উগ্রপন্থিরাই।

কুষ্টিয়া জেলা শিশু একাডেমির উদ্যোগে বিশ্ব শিশু দিবস ও শিশু অধিকার সপ্তাহ উদ্যাপন

বিশ্ব শিশু দিবস ও শিশু অধিকার সপ্তাহ ২০১৯ উদ্যাপন উপলক্ষ্যে বাংলাদেশ শিশু একাডেমি কুষ্টিয়া জেলা শাখার উদ্যোগে ৭ হতে ১৪ অক্টোবর পর্যন্ত  নানা কর্মসূচির আয়োজন করা হয়। কর্মসূচি সমূহের মধ্যে ছিল শিশুদের আনন্দ শোভাযাত্রা,  শিশু সমাবেশ, প্রাক-প্রাথমিক শিশুদের জন্য ছড়াপাঠ, ক্রীড়া প্রতিযোগিতা ও সুবিধাবঞ্চিত, শ্রমজীবী  ও প্রতিবন্ধী শিশুদের জন্য ছবি আঁকা প্রতিযোগিতা,  আন্তর্জাতিক কন্যা শিশু দিবস উপলক্ষ্যে কন্যা শিশু সমাবেশ, কন্যা শিশুদের দেশের গান প্রতিযোগিতা এবং আনন্দ অনুষ্ঠান। গতকাল ১৪ অক্টোবর বিকেল সাড়ে ৩টায় কুষ্টিয়া সরকারি বালিকা উচ্চ বিদ্যালয় মিলনায়তনে আলোচনা সভা, পুরস্কার বিতরণ ও সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন অতিরিক্ত জেলা ম্যাজিস্ট্রেট লুৎফুন নাহার। বিশেষ অতিথি ছিলেন অতিরিক্ত পুলিশ সুপার, কুষ্টিয়া সদর সার্কেল নূরানী ফেরদৌস দিশা, জেলা আওয়ামী লীগের সহ সভাপতি শেখ গিয়াস উদ্দীন আহমেদ মিন্টু, এবং সরকারি বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক (ভারপ্রাপ্ত) মোজাম্মেল হক।  সভাপতিত্ব করেন জেলা শিশু বিষয়ক কর্মকর্তা মোঃ মখলেছুর রহমান। সংবাদ বিজ্ঞপ্তি

দৌলতপুরে বিজিবি’র অভিযানে ২৮০ বোতল ফেনসিডিল উদ্ধার

দৌলতপুর প্রতিনিধি ॥ কুষ্টিয়ার দৌলতপুরে বিজিবি’র অভিযানে ২৮০ বোতল ফেনসিডিল উদ্ধার করেছে। গতকাল সোমবার রাত আড়াইটার দিকে উপজেলার সীমান্ত সংলগ্ন মহিষকুন্ডি মাঠপাড়া এলাকায় মহিষকুন্ডি বিজিবি’র টহল দল অভিযান চালিয়ে বিপুল পরিমান এ মাদক উদ্ধার করে। অপরদিকে একইদিন রাত ৩টার দিকে রংমহল বিওপি’র টহল দল রংমহল পশ্চিমাঠ নামক স্থানে অভিযান চালিয়ে ১২ বোতল বেঙ্গল টাইগার মদ উদ্ধার করেছে। তবে উদ্ধার হওয়া মাদকের সাথে জড়িত কেউ আটক হয়নি।

ঝিনাইদহে ভূয়া প্রকল্পের নামে বাংলাদেশ ব্যাংক থেকে ঋণ উত্তোলন

ঝিনাইদহ প্রতিনিধি ॥ ঝিনাইদহে ভূয়া প্রকল্প দেখিয়ে বাংলাদেশ ব্যাংক থেকে ঋণের নামে অর্থ হাতিয়ে নেওয়ার অভিযোগ উঠেছে এক নারীর বিরুদ্ধে। বিশেষ সুত্রে জানা গেছে ঝিনাইদহ সদর উপজেলার সাগান্ন ইউনিয়নের সাগান্না গ্রামের ষাটতলা পাড়ার তাজুল ইসলামের মেয়ে নিপা খাতুন “জোনাকি ডেইরী অ্যান্ড এগ্রো লিঃ” নামে একটি ভূয়া প্রকল্প তৈরি করে বাংলাদেশ ব্যাংক থেকে ১ কোটি ৪০ লক্ষ টাকা ঋণ নেয়। এই প্রকল্পে দেখান হয়েছে যে ৩ একর জমির উপর ডেইরী ফার্ম ও বায় গ্যাস প্রান্ট তৈরি করবে। এই পরিকল্পনা বাস্তবায়ন করতে বাংলাদেশ ব্যাংকের কোন এক দালালের মাধ্যমে যোগাযোগ করে নিপা কে এই প্রকল্পের এম ডি দেখিয়ে ১ কোটি ৪০ লক্ষ টাকার ঋণ পাস করে। এই ঋণে ৪ বছর পর মাত্র ৪% হারে সুদ দিতে হবে। সরেজমিনে গেলে দেখা যায় যে ফার্মের দেওয়ালে জোনাকি ডেইরী অ্যান্ড এগ্রো লিঃ প্রকল্পের নাম লেখা আছে আধুনিক পদ্ধতিতে দুগ্ধ খামার ও বায়োগ্যাস উৎপাদন প্রকল্প, সার্বিক তত্ত্ববধায়নে বাংলাদেশ ব্যাংক। ফার্মের মধ্যে গরুর ঘর থাকলেও এই ঘরে কোন গরু নেই এমনকি কোন দিন এখানে গরু পালন হয়েছে তার কোন নিশানা নেই। নেই বায়োগ্যাস প্রান্ট। শুধু কয়েক বিঘা জামির বাউন্ডারি ঘিরে রাখা হয়েছে তার মধ্যে করা হয়েছে কিছু ঘাসের চাষ । এই প্রকল্প দেখিয়ে বাংলাদেশ ব্যাংক থেকে পাশ করান হয়েছে ১ কোটি ৪০ লক্ষ টাকা। যার প্রথম কিস্তি ৭০ লক্ষ টাকা পেয়েছে বাকি আরও ৭০ লক্ষ টাকা পাবে। নাম প্রকাশ না করার সর্তে কয়েক জন বলেন যে এই জমি নিপার না তাহলে নিপার নামে কি ভাবে ঋণ হলো। এই ভাবে ঋণ হলে সে টাকা আর বাংলাদেশ ব্যাংক পাবে না। নিপার এক প্রবাসীর সাথে বিবাহ হয়েছে, কিন্তুু সে এখন ঢাকায় থাকে। এই প্রসঙ্গে নিপা খাতুনের সাথে কথা বললে তিনি বলেন আমার ফার্ম ২০১৮সালে মার্চ মাসে শুরু করি, কে বা কাহারা আমার ও আমার ফ্যামেলি উপর শক্রতা করে আমাদেকে ফাঁসানোর জন্য চেষ্টা করছে, মোট তিনটা কিস্তি পাব, প্রথম কিস্তি ৭০লক্ষ পেয়েছি, দ্বীতিয় কিস্তি কিছুদিনের ভিতরে পাব। পাশের বাড়ির লোক জনের সাথে কথা বলে জানা যায় যে নিপা এখানে থাকে না ঢাকায় থাকে মাঝে মাঝে আসে। তবে গরুর ফার্ম করার জন্য ঋণ নিলেও তারা কোন গরুর ফার্ম করেনি। কোন কারনে তাজুল ইসলাম অনেক ঋণ আছে এই টাকা নিয়ে সেই ঋণ পরিশোধ করেছে।

আব্দুর রব স্মৃতি পরিষদের পক্ষ থেকে মৃগী ইউপি আ’লীগের নবনির্বাচিত সভাপতি-সম্পাদককে ফুলেল শুভেচ্ছা

ফজলুল হক ॥ রাজবাড়ীর কালুখালী উপজেলার মৃগীতে বীর মুক্তিযোদ্ধা আব্দুর রব স্মৃতি পরিষদের পক্ষ থেকে মৃগী ইউপি নবনির্বাচিত আওয়ামীলীগের সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদক কে ফুলেল শুভেচ্ছা জানানো হয়েছে। সভাপতি হিসেবে সাবেক মৃগী ইউপি চেয়ারম্যান মোঃ বদর উদ্দিন সরদার ও সাধারণ সম্পাদক হিসেবে অধ্যাপক রফিকুল ইসলাম বাদশা নির্বাচিত হওয়ায় এ ফুলেল শুভেচ্ছা প্রদান করা হয়। গতকাল রবিবার সকাল ১০টায় ফুলেল শুভেচ্ছা প্রদানকালে উপস্থিত ছিলেন পরিষদের সভাপতি মোঃ হাবিবুর রহমান মাষ্টার, সাধারণ সম্পাদক অধ্যাপক রফিকুল ইসলাম, সাংগঠনিক সম্পাদক বিশিষ্ট ব্যবসায়ী মোঃ ওমর ফারুক, সহ-সভাপতি হিসেবে মোঃ জালাল উদ্দিন, কবি লোকমান হোসেন, মোঃ মোশারফ হোসেন, আমজাদ হোসেন, মোঃ নাদের, সহ-সাধারণ সম্পাদক ইস্তিয়াক আহম্মেদ, কোষাধ্যক্ষ আতিয়ার রহমানসহ অন্যান্যরা উপস্থিত ছিলেন।

আসাফো’র কেন্দ্রীয় সভাপতির সুস্থতা কামনায় কুষ্টিয়া জেলা কমিটির দোয়া মাহফিল

বাংলাদেশ আওয়ামী সাংস্কৃতিক ফোরাম (আসাফো) এর কেন্দ্রীয় সভাপতি সাইদুর রহমান সজল গুরুত্বর অসুস্থ হওয়ায় আওয়ামী সাংস্কৃতিক ফোরাম (আসাফো) কুষ্টিয়া জেলা শাখার উদ্যোগে তার সুস্থতা কামনা করে মিলাদ ও  দোয়া মাহফিল অনুষ্ঠিত হয়েছে। গতকাল রবিবার সন্ধ্যায় আসাফো কুষ্টিয়া শাখার অস্থায়ী কার্যালয় বঙ্গবন্ধু সুপার মার্কেটের ৩য় তলায় এই মিলাদ ও দোয়া মাহফিল অনুষ্ঠিত হয়। দোয়া পরিচালনা করেন হাফেজ তরিকুল ইসলাম। এসময় উপস্থিত ছিলেন আসাফো কুষ্টিয়া জেলা শাখার সভাপতি সাংবাদিক হাসিবুর রহমান রিজু, সাধারণ সম্পাদক আলমগীর আলী, সিনিয়র যুগ্ম সম্পাদক এম সোহাগ হাসান, সাংগঠনিক সম্পাদক জিল্লুর রহমান, আওয়ামী সাংস্কৃতিক ফোরাম (আসাফো) কুষ্টিয়া সদর উপজেলা শাখার সভাপতি জাফর আহমেদ, সাধারণ সম্পাদক এমদাদুল হক, জেলা শাখার দপ্তর সম্পাদক মাহামুদ আল হাফিজ অভি, প্রচার সম্পাদক মনির আহমেদ, উপ-প্রচার সম্পাদক আলামিন খান রাব্বী, উপ-আইন বিষয়ক সম্পাদক শফিকুল ইসলাম সবুজ, সদস্য অনুপ কুমার প্রামাণিকসহ জেলার নেতৃবৃন্দরা উপস্থিত ছিলেন। উল্লেখ্য, গত ১১ অক্টোবর কুষ্টিয়ার ৬ উপজেলা সম্মেলনে আসেন আসাফো’র কেন্দ্রীয় সভাপতি সাইদুর রহমান সজল। সম্মেলন শেষে খুলনার উদ্যোশে রওনা দেওয়ার পথে যশোরে পোঁছালে বুকে ব্যাথা অনুভব করে সে। তাৎক্ষনিক যশোর সিএমএইচ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। প্রাথমিক চিকিৎসা শেষে এয়ার এ্যাম্বুলেন্সে তাকে ঢাকার সিএমএইচ হাসপাতালে চিকিৎসা নেন। শারিরীক অবস্থার অবনতি হলে ল্যাব এইড হাসপাতালে স্থানান্তর করা হয়। উন্নত চিকিৎসার জন্য আজ সকালে সিঙ্গাপুর মাউন্ট এলিজাবেথ হসপিটালের উদ্যোশে রওনা হবেন। সংবাদ বিজ্ঞপ্তি

মকবুল হোসেন কখনও নৌকায় ভোট দেয়নী, ষড়যন্ত্রকারীরা এক জায়গায় 

গাংনী প্রতিনিধি ॥ সেদিনও মকবুল সাহেব আমার বিরুদ্ধে ষড়যন্ত্র করেছিলো। সেই নির্বাচনে আমি কারোর দয়ায় সভাপতি নির্বাচিত হইনি। ভোটারদের ভোটে নির্বাচিত হয়েছি। গতকাল রবিবার দুপুর সাড়ে ১২টায় সংসদ সদস্য মোহাম্মদ সাহিদুজ্জামান খোকনের বাসভবনস্থ কার্যালয়ে নেতা কর্মীরা সাক্ষাত করতে গেলে তিনি এ কথা বলেন। তিনি আরো বলেন, আজকে যারা ষড়যন্ত্র করছে তারা নির্বাচনের সময়ও মিল্টনের টাকা খেয়ে আমার বিরুদ্ধে ষড়যন্ত্র করেছে। তারা জীবদ্দশায় কোন দিন নৌকা মার্কায় ভোট দেয়নী। সেই লোক গুলো এক জায়গায় হয়েছে। আমি ৮ মাস এমপি হয়েছি, সরকার একটি মাত্র বরাদ্দ দিয়েছে তা হলো টিআর  কাবিখা। সেই বরাদ্দ আমি মসজিদ মাদ্রাসায়  দিয়েছি। সম্মান দেওয়ার মালিক আল্লাহ আমাকে সম্মান দিয়েছে। আমি অপকর্ম করলে আল্লাই আমাকে এখান থেকে সরিয়ে দেবে। আমি সব সময় চেয়েছি গাংনীর মানুষ শান্তিতে থাক কিন্তু সেই দুর্নীতিবাজ মোশা- খালেকের সাথে থেকে মকবুল হোসেনকে গালি দেয়। আবার মকবুলের কাছে থেকে খালেক সহ অন্য নেতাদের গালি দেয়। কাউন্সিলকে বানচাল করতেই ষড়যন্ত্র করা হচ্ছে। মোশা স্কুল কলেজে শিক্ষক কর্মচারী নিয়োগে লুটপাট করে গাড়ী বাড়ি বানিয়েছে। তার অপকর্ম আড়াল করতে অপপ্রচার করা হচ্ছে। ৭৩ থেকে ১৮ সাল পর্যন্ত ঐ মকবুল হোসেনরা কোন দিন নৌকায় ভোট দেয়নী। ২০০১, ২০০৮ আর কোন দিন শেখ হাসিনার পক্ষ কাজ করেনী। নেতা কর্মীরা না চাইলে সভাপতি প্রার্থী হবোনা। আর নেতা কর্মীরা চাইলে আগামি ২৭ তারিখে দাঁত ভাঙ্গা জবাব দেয়া হবে। এসময় গাংনী পৌর মেয়র আশরাফুল ইসলাম,জেলা পরিষদ সদস্য মজিরুল ইসলাম,বামুন্দী ইউপি চেয়ারম্যান শহিদুল ইসলাম,আওয়ামীলীগ নেতা মকলেচুর রহমান মুকুল,পৌর কাউন্সিলর নবীর উদ্দীন,পৌর কাউন্সিলর আছেল উদ্দীন,বামুন্দী ইউপি আওয়ামীলীগের সাধারন সম্পাদক ওবাইদুর রহমান কমল,স্বেচ্ছা সেবকলীগের আহবায়ক আবুল বাশার,জেলা ছাত্রলীগের সাধারন সম্পাদক মুনতাছির জামান মৃদুল সহ আওয়ামীলীগ নেতা কর্মীরা উপস্থিত ছিলেন।

 ডেঙ্গু প্রতিরোধে কুষ্টিয়া পৌরসভার কার্যক্রম অব্যাহত

ডেঙ্গু প্রতিরোধে কুষ্টিয়া পৌরসভার কার্যক্রম অব্যাহত রয়েছে। কিট “বকসার ২.৫” পৌর এলাকায় ২১টি ওয়ার্ডে ¯েপ্র মেশিনের মাধ্যমে ছেটানো হচ্ছে। এই কিট ¯েপ্র করার কারনে মশার লাভা নষ্ঠ করবে ও উড়ন্ত মশা দীর্ধস্থায়ী হবে না। তৃতীয় বারের মত কিট “বকসার ২.৫” ¯েপ্র মেশিন দিয়ে ১৮ সেপ্টেম্বর হতে ১৩ অক্টোবর পর্যন্ত পূনরায় পৌরসভার ২১টি ওয়ার্ডের বিভিন্ন শিক্ষা-প্রতিষ্ঠান, ডোবা-নালা, ড্রেন, কালভার্ট সহ পৌর বাসিন্দাদের বসতবাড়ী ও তাদের আঙ্গিনায় ¯েপ্র করা হচ্ছে। সেইসাথে মশক নিধন কার্যক্রম অব্যাহত থাকবে। উল্লেখ্য, গত জুলাই ২৫ তারিখ থেকে কুষ্টিয়া পৌরসভার আয়োজনে আনুষ্ঠানিকভাবে এই কার্যক্রম শুরু হয়। এর পর হতে পৌরসভার মেয়রের নির্দেশনা পর্যায়ক্রমে পৌর এলাকার পূনরায় ২১টি ওয়ার্ডে স্বস্ব কাউন্সিলরের নেতৃত্বে কীটনাশকসহ ফগার মেশিন দিয়ে এই মশক নিধন কার্যক্রম পরিচালিত হচ্ছে। এছাড়াও পৌরসভার পরিচ্ছন্ন কর্মীরা পৌর এলাকায় পরিষ্কার-পরিচ্ছন্নতা অব্যাহত রেখেছে । সংবাদ বিজ্ঞপ্তি

 

কুষ্টিয়া পৌর বাজারের ব্যবসায়ীকে জরিমানা

আমলা অফিস ॥ কুষ্টিয়ার পৌর বাজারে অভিযান চালিয়ে প্লাস্টিকের বস্তায় মরিচ রাখার দায়ে এক ব্যবসায়ীকে জরিমানা করেছে ভ্রাম্যমান আদালত। গতকাল রবিবার দুপুরে কুষ্টিয়া পৌর বাজারে এ অভিযান পরিচালনা করেন কুষ্টিয়া জেলা প্রশাসকের কার্যালয়ের সহকারী কমিশনার ও নির্বাহী ম্যাজিষ্ট্রেট তামান্না তাসনিম। ভ্রাম্যমান আদালত সুত্রে জানা যায় “পন্যে পাটজাত মোড়কের বাধ্যতামূলক আইন-২০১০” নিশ্চিতে উক্ত এলাকায় অভিযান চালিয়ে আইন অমান্য করে প্লাস্টিকের বস্তায় মরিচ রাখার দায়ে শাহিন নামের এক ব্যবসায়ীকে এক হাজার টাকা জরিমানা করে ভ্রাম্যমান আদালত। এসময় কুষ্টিয়ার মুখ্য পাট পরিদর্শক সোহরাব উদ্দিন উক্ত আইনটি মেনে চলার জন্য উপস্থিত সকলকে আহবান জানান। সেই সাথে আগামীতে জেলা ব্যাপি এ অভিযান অব্যহত থাকবে বলেও জানান তিনি।

গাংনীর সেই আলোচিত ব্যানার অপসারন

গাংনী প্রতিনিধি ॥ মেহেরপুরের গাংনীর আলোচিত ব্যানারটি সরিয়ে দেয়া হয়েছে। আজ রবিবার সকাল ১১ টায় গাংনী উপজেলা চেয়ারম্যান ও জেলা আওয়ামীলীগের সাধারন সম্পাদক এম এ খালেক,সাবেক সংসদ সদস্য মো: মকবুল হোসেনের উপস্থিতিতে ব্যানারটি অপসারন করা হয়। এসময় সাবেক পৌর মেয়র আহমেদ আলী,গাংনী উপজেলা আওয়ামীলীগের সাংগঠনিক সম্পাদক নজরুল ইসলাম, পৌর আওয়ামীলীগের সাধারন সম্পাদক আনারুল ইসলাম বাবু সহ আওয়ামীলীগ নেতৃবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন। ব্যানার অপসারন প্রসঙ্গে গাংনী উপজেলা চেয়ারম্যান ও জেলা আওয়ামীলীগের সাধারন সম্পাদক এম এ খালেক বলেন, কুখ্যাত রাজাকার পুত্র দূর্নীতিবাজ সাহিদুজ্জামান খোকন সহ হাইব্রীড মুক্ত আওয়ামীলীগের নেতৃত্ব চাই শিরোনাম ব্যানারটির সাথে আমরা একমত ,তবে সেটা সুষ্ঠু ভাবে হতে হবে কোন বিশৃংখলা করা যাবেনা। সুষ্ঠ ভাবে এই দাবি পুরনে দলের গঠনতন্ত্রে এ নিয়ম লেখা আছে। নেতা কর্মীদের দাবির প্রতি সম্মান জানিয়ে কেন্দ্রের নির্দেশনা মোতাবেক কমিটি উপহার দেওয়া হবে। ব্যানার নামানো প্রসঙ্গে গাংনী উপজেলা যুবলীগ সভাপতি মোশাররফ হোসেন মোবাইল ফোনে বলেন, ব্যবসায়ীক কাজে তিনি বাইরে আছেন। ব্যানার নামানোর বিষয়ে তিনি কিছু জানেন না।