মুম্বাইয়ের বাড়ি ছেড়ে কি চলে যাচ্ছেন সালমান?

বিনোদন বাজার ॥ বলিউড সুপারস্টার সালমান খান তার মুম্বাইয়ের গ্যালাক্সি অ্যাপার্টমেন্ট নাকি ছেড়ে যাচ্ছেন। তবে এখন প্রশ্ন হলো- কোথায় যাচ্ছেন তিনি।

সম্প্রতি সালমানের বাড়িছাড়ার কথা উঠে এসেছে আলোচনায়। যদিও সম্প্রতি সালমানের ওই বাসস্থানকে ঘিরে বিক্ষোভ করেছেন কিছু লোক। তাদের ইস্যু ছিল রিয়েলিটি শো বিগ বস।

সংবাদমাধ্যম জিনিউজের প্রতিবেদনে জানা যায়, সম্প্রতি গুঞ্জন উঠেছে মুম্বাইয়ের ওই অ্যাপার্টমেন্ট ছেড়ে দিচ্ছেন সালমান। তবে কোথায় যাচ্ছেন তিনি, এমন পশ্নও ওঠেছে সর্বত্র।

প্রতিবেদনে বলা হয়, শৈশবের স্মৃতিঘেরা ওই অ্যাপার্টমেন্ট ছেড়ে কোথাও যাচ্ছেন না সালমান। খান পরিবারের ঘনিষ্ঠ সূত্রের বরাত দিয়ে এ তথ্য জানানো হয়।

এই অ্যাপার্টমেন্টেই জন্ম সুপারস্টার সালমান খানের। শুধু তা-ই নয়, এখানেই শৈশব-কৈশোর কাটিয়েছেন তিনি। তাই স্বাভাবিকভাবেই এখান থেকে এখনই কোথাও যাওয়ার ইচ্ছে নেই তার। তবে এ ব্যাপারে ভাইজানের পক্ষ থেকে কোনো বক্তব্য পাওয়া যায়নি।

এদিকে ভারতে সম্প্রতি রিয়েলিটি শো ‘বিগ বস’-এর ১৩তম আসরের প্রচার বন্ধের দাবিতে বিক্ষোভ হচ্ছে। ওই অনুষ্ঠানে অশ্লীলতা ছড়ানো হচ্ছে, এ অভিযোগ থেকেই এমন দাবি তাদের। বিক্ষোভের সেই উত্তাপ ছড়িয়েছে সালমানের বাড়ি অবধি।

সিদ্দিক-মিমের সংসার ভেঙে যাচ্ছে

বিনোদন বাজার ॥ সম্প্রতি তারকাদের বিচ্ছেদের খবর শোনা যাচ্ছে অহরহ। এবার শোনা গেল অভিনেতা সিদ্দিকুর রহমান ও মারিয়া মিমের বিচ্ছেদের খবর।

দাম্পত্য কলহের জেরে ভেঙে যাচ্ছে তাদের সংসার। বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন অভিনেত্রী মারিয়া মিম।

পরিবারের সম্মতি নিয়ে বিয়ে হয়েছিল তাদের। তবে এখন সংসার টিকছে না। তাদের একটি পুত্রসন্তানও রয়েছে।

২০১২ সালের ২৪ মে বাংলাদেশি বংশোদ্ভূত স্পেনের নাগরিক মারিয়া মিমকে বিয়ে করেন সিদ্দিক। ২০১৩ সালের ২৫ জুন তারা পুত্রসন্তানের বাবা-মা হন।

তবে এখন সিদ্দিক-মিমের মধ্যে দূরত্ব বেড়েছে। বাধ্য হয়ে তিন মাস ধরে স্বামীর কাছ থেকে আলাদা থাকছেন মিম।

মিম জানান, দাম্পত্য কলহের জেরে ভেঙে যাচ্ছে তাদের সংসার। অনেক কিছুই তারা মানিয়ে নিতে পারছেন না। মিম চান শোবিজে কাজ করতে। কিন্তু সিদ্দিকের এতে আপত্তি।

মিমের অভিযোগ, কিছু দিন আগেই একটি বিজ্ঞাপনে কাজ করার কথা থাকলেও বিজ্ঞাপনটির নির্মাতা রানা মাসুদকে সিদ্দিকই প্রভাবিত করেছেন তাকে বাদ দিয়ে অন্য কাউকে নেয়ার জন্য।

মিম বলেন, সিদ্দিক নিজেও একজন শোবিজের মানুষ। অভিনয় করে, মডেলিং করে। এতে আমার কোনো আপত্তি নেই। স্বামী হিসেবে ওর কাছে কোনো সহযোগিতা পাই না। সে জন্যই আমি সিদ্ধান্ত নিয়েছি বিচ্ছেদের।

বর্তমানে একমাত্র পুত্র আরশ হোসেন তার বাবা সিদ্দিকের সঙ্গেই থাকছে। ডিভোর্সের পর নিজেকে শোবিজে ব্যস্ত রাখতে চান মিম।

রণবীর ও আলিয়ার বিয়ে নিয়ে যা বললেন কারিনা

বিনোদন বাজার ॥ বলিউডের জনপ্রিয় দুই তারকা আলিয়া ভাট ও কারিনা কাপুর খান। ভারতের মুম্বাইয়ে চলছে ‘২১তম জিও এমএএমআই মুভি মেলা। যেখানে এ দুই তারকা এবং তাদের সঙ্গে করণ জোহর উভয়ের ‘কমন’ ব্যক্তি আর পারিবারিক বিষয় নিয়ে আলাপ করলেন।

পরিচালক ও প্রযোজক করণ জোহর ছোটখাটো করে উপস্থিত দর্শকদের সামনে একটা ‘কফি উইথ করণ’ অনুষ্ঠান করে ফেললেন। অবশ্য এই বেলা কফি ছিল কিনা।

কে সেই ‘কমন’ ব্যক্তি? তিনি রণবীর কাপুর। যিনি একই সঙ্গে কারিনা কাপুর খানের চাচাতো ভাই আর আলিয়া ভাটের প্রেমিক।

এই আলাপের সময় অভিনেত্রী কারিনা কাপুর বলেন, বলিউডের এ মুহূর্তের সবচেয়ে আলোচিত জুটি রণবীর কাপুর ও আলিয়া ভাট। তাদের বিয়ে হলে নাকি তিনিই সবচেয়ে বেশি খুশি হবেন।

দি ইন্ডিয়ান এক্সপ্রেস ডটকম এমনটিই জানিয়েছে। চুটিয়ে প্রেম করলেও রণবীর কাপুরের নাম মুখে নিতে গিয়ে আলিয়া ভাট লজ্জায় লাল হয়ে যান।

শেষমেশ করণ জোহর প্রশ্নটা করলেন একটু ঘুরিয়ে। বললেন, ‘কখনও ভেবেছিলে কারিনা তোমার ননদ হবে?’ শুনে দর্শক সারিতে বসা সবাই চিৎকার করে বলেছেন, এই প্রশ্ন শুধু করণ জোহরের নয়, এই প্রশ্ন তাদের সবার।

অন্যদিকে প্রশ্ন শুনে আলিয়া লজ্জায় আরও গাঢ় হয়। তবে নীরবতা ভেঙে কারিনা বললেন, ‘তা যদি হয় (আলিয়া আর রণবীরের বিয়ে), তবে আমি সবচেয়ে খুশি হব।’

এর পর আলিয়া ভাট ছোট্ট করে বললেন, সত্যি বলছি- আমি এখনও এসব ভাবছি না। সময়ই সব বলে দেবে।

‘দাদাগিরি’ ছাড়ছেন না সৌরভ

বিনোদন বাজার ॥ প্রায় এক দশক ধরে ভারতীয় টিভি চ্যানেল জি বাংলায় প্রচার হচ্ছে নন-ফিকশন শো ‘দাদাগিরি’। এটি সঞ্চালনা করেন দেশটির সাবেক অধিনায়ক সৌরভ গাঙ্গুলি। ক্রিকেটের থিমে তৈরি শো’টি পশ্চিমবঙ্গের পাশাপাশি বাংলাদেশেও তুমুল জনপ্রিয়। এর পুরো কৃতিত্ব দাদার।

তাজা খবর, ভারতীয় ক্রিকেট বোর্ডের (বিসিসিআই) সভাপতি হচ্ছেন সৌরভ। সোমবারই বিষয়টি নিশ্চিত হয়ে গেছে। আগামী ২৩ অক্টোবর বোর্ডের কার্যভার গ্রহণ করবেন তিনি। স্বভাবতই তাকে অনেক দায়িত্ব ছাড়তে হচ্ছে।

আইপিএল ফ্র্যাঞ্চাইজি দিল্লি ক্যাপিটালসের কোচের দায়িত্ব ছাড়ছেন সৌরভ। ধারাভাষ্য ও কলাম লেখা থেকে বিরতি নিচ্ছেন। ক্রিকেট অ্যাসোসিয়েশন অব বেঙ্গলের (সিএবি) সভাপতির পদেও ইস্তফা দিচ্ছেন।

স্বাভাবিক কারণেই প্রশ্ন ওঠে, ‘দাদাগিরি’তে তাকে আর দেখা যাবে তো? এরই মধ্যে উত্তরও মিলেছে। টেলিভিশন শো’টিতে নিয়মিতই দেখা যাবে বাংলার মহারাজকে।

বোর্ড প্রেসিডেন্ট হওয়ার পরই পশ্চিমবঙ্গের প্রথম সারির একটি পত্রিকায় সাক্ষাৎকার দেন সৌরভ। তাতে জানান, ‘দাদাগিরি’ ছাড়ছেন না তিনি। অনুষ্ঠানটি উপস্থাপনার কাজ চালিয়ে যাবেন।

দাদার প্রতি আরও প্রশ্ন ছুড়ে দেন সাংবাদিকরা-‘দাদাগিরির’র স্ক্রিপ্ট কে লেখেন? জবাবে সৌরভের বুদ্ধিদীপ্ত উত্তর, ঈশ্বর লেখেন। মূলত উপস্থাপনার পাশাপাশি নিজেই পুরো অনুষ্ঠানের স্ক্রিপ্ট লেখেন নয়া বোর্ড প্রেসিডেন্ট। অর্থাৎ সঞ্চালকের ভূমিকার পাশাপাশি স্ক্রিপ্ট রাইটারের কাজও করেন তিনি।

২০০৯ সালের ১২ অক্টোবর টেলিভিশনের পর্দায় ‘দাদাগিরি’র প্রচার শুরু হয়। সময়ের ব্যবধানে অনুষ্ঠানটি ব্যাপক দর্শকপ্রিয়তা পায়। দর্শকদের সরাসরি অংশগ্রহণে প্রতিটি পর্ব তৈরি হয়। এখন চলছে এর অষ্টম মৌসুম। শো’টি পরিচালনা করেন শুভঙ্কর চট্টোপাধ্যায়।

বিয়ে করছেন সাবিলা নূর

বিনোদন বাজার ॥ ছোটপর্দার অভিনেত্রী সাবিলা নূর। এ মাসেই বিয়ের পিঁড়িতে বসছেন তিনি। পাত্রের নাম নেহাল সুনন্দ তাহের। বর্তমানে এসএ টেলিভিশন চ্যানেলে কর্মরত আছেন তিনি। শোনা যায়, অনেক দিন থেকেই নেহালের সঙ্গে মন দেয়া-নেয়া ছিল তার। এবার সাবিলা ও নেহালের দুই পরিবারের সম্মতিতে তাদের চারহাত এক হতে যাচ্ছে। তাদের বিয়ের আয়োজন হবে রাজধানীর একটি ক্লাবে। ইতোমধ্যে সাবিলা নূরের বিয়ের আমন্ত্রণপত্র পাঠানো হচ্ছে অতিথিদের কাছে। সেখানেই সাবিলার বরের পরিচয় দেয়া পাত্র পরিবারের কনিষ্ঠ সন্তান নেহালের আদিবাড়ি চাঁদপুর। তার বাবা বাংলাদেশ বেতারের সাবেক উপ-মহাপরিচালক মরহুম আবু তাহের। মা উত্তরার মাইলস্টোন স্কুল এন্ড কলেজের কো-অর্ডিনেটরের দায়িত্ব পালন করছেন। দাওয়াতপত্রে বিয়ের তারিখ জানানো হয়েছে ২৫ অক্টোবর (শুক্রবার)।

বিবাহবার্তা নামে সাবিলার বিয়ের কার্ড কিছুটা ওয়েডিং ম্যাগাজিনের আদলে করা হয়েছে। সাবিলা নূর ২০১৪ সাল থেকে মডেলিংয়ের মাধ্যমে শোবিজ জগতে প্রবেশ করেন। গ্রামীণফোন, প্রাণ ফিট, রবি ছাড়াও প্রায় ৪০টির মতো জনপ্রিয় বিজ্ঞাপনে তিনি কাজ করেছেন।

এফডিসিতে অপমানিত মৌসুমী

বিনোদন বাজার ॥ বাংলাদেশ চলচ্চিত্র শিল্পী সমিতির এবারের নির্বাচন নিয়ে একের পর এক বিতর্ক সৃষ্টি হচ্ছে। সর্বশেষটি হচ্ছে, সোমবার সন্ধ্যায় স্বতন্ত্র সভাপতিপ্রার্থী মৌসুমীকে আরেক অভিনেতা ড্যানি রাজ কর্তৃক অপমান।

মৌসুমী গণমাধ্যমকে বলেন, ‘আমাকে শুভেচ্ছা জানাতে একজন আপা ফুল নিয়ে আসেন। তার সাথে আমার কয়েকজন ভক্ত ছিলো। তারা আমার সাথে সেলফি তুলছিলো। এরপর তারা চলে যাওয়ার কথা। ঠিক ওই সময় ড্যানিরাজ আমিসহ উপস্থিত সবার সাথে ঔদ্ধত্যপূর্ণ আচরণ করেন। ড্যানি আমাকে চিৎকার করে করে বলেন আমি কে? আসলে তারা চাইছে একটা ঝামেলা বাঁধাতে। যেন নির্বাচন বানচাল হয়ে যায়। আমি নির্বাচন থেকে সরে দাঁড়াই।’

মৌসুমীর অভিযোগ, এই সময় বর্তমান সভাপতি মিশা সওদাগর উপস্থিত থাকলেও তিনি কাউকে কিছু বলেননি।

প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, সন্ধ্যায় এফডিসিতে মহিলা লীগের কয়েকজন নেতা-কর্মীর সাথে মৌসুমীর ভক্তরাও আসেন। তারা মৌসুমির সাথে সেলফি তুলতে গেলে ড্যানি রাজ মৌসুমিসহ তার ভক্তদের সাথে খারাপ ব্যবহার করে। মৌসুমিকে উদ্দেশ্য করে চিৎকার করে বলতে থাকে, আপনি কে? বেশ কয়েকবার বলেন। এই সময় তিনি কেঁদে ফেলেন।

আরও অভিযোগ উঠেছে ঘটনার সময় ড্যানি রাজ মৌসুমীকে ধাক্কা দিয়েছেন। তবে মৌসুমীর অভিযোগ কিছুটা স্বীকার করে মিশা সওদাগর বলেন, ধাক্কার ঘটনা ঘটেনি। তবে ড্যানি মৌসুমীকে যেভাবে বলেছে ‘আপনি কে?’ এটা খুবই খারাপ হয়েছে। তার এভাবে বলা কোনভাবেই ঠিক হয়নি।

তবে পুরো ঘটনার জন্য ক্ষমা চেয়েছেন ড্যানি রাজ। বিষয়টি নিয়ে প্রধান নির্বাচন কমিশনার ইলিয়াস কাঞ্চন তাৎক্ষণিকভাবে প্রযোজক সমিতির সভাপতি খোরশেদ আলম খসরু, সাধারণ সম্পাদক শামসুল আলম, শিল্পী সমিতির সভাপতি মিশা সওদাগরকে নিয়ে আলোচনায় বসেন। সেখানে ড্যানি রাজ তার কৃতকর্মের জন্য ক্ষমা চান।

মালেক আফসারীকে চিনেন না কোয়েল মল্লিক

বিনোদন বাজার ॥ শাকিব খানকে নিয়ে ‘হ্যাকার’ নামে একটি সিনেমার ঘোষণা দিয়েছেন মালেক আফসারী। আর সে সিনেমায় নায়িকা হিসেবে কলকাতার কোয়েল মল্লিক থাকছেন বলেও জানান তিনি।

কিন্তু স্বয়ং কোয়েল মল্লিক বলেছেন, ‘মালেক আফসারীকে চিনি না। তবে শাকিব খানকে চিনি। আর সম্প্রতি কেউ বাংলাদেশ থেকে আমার সাথে ছবির ব্যাপারে কথা বলেনি। তাই ওখানকার কোন ছবিই করছি না এই মুহূর্তে।’

কোয়েল মল্লিকের বক্তব্য জানাতেই মালেক আফসারী স্বীকার করে নেন খবরটি ভুল। যদিও এর আগে তিনিই গণমাধ্যমকে বলেছিলেন কোয়েল থাকছেন শাকিবের বিপরীতে। তিনি বলেন, ‘কোয়েল ঠিকই বলেছেন। তার সাথে আমাদের কোনো কথাবার্তা হয়নি। তবে হতে কতক্ষণ! শাকিব খানের সাথে তার ভালো সম্পর্ক। কিন্তু আমার ছবিতে কোয়েল মল্লিককেই অভিনয় করতে হবে এমন না। আমি চাই নতুন মুখ। নতুন কেউ যদি নাচ জানে তার ভেতর থেকে আমি অভিনয় বের করে নিতে পারব।’

তিনি আরও বলেন, ‘কোয়েল মল্লিকের সাথে কাজ করার কথা হচ্ছিল ‘পাসওয়ার্ড’ ছবির আগে থেকে। তখন আমরা মিটিং করছিলাম। সেসময় কলকাতা থেকে কোয়েল মল্লিক ফোন করেছিলেন শাকিব খানকে। কথায় কথায় শাকিব খান তাকে সিনেমা করার প্রস্তাব দেন। তখন থেকে মূলত মিডিয়ায় খবরটি ছড়ায়।’ এর আগে বেশ কয়েকবার কোয়েল মল্লিক বাংলাদেশের ছবিতে অভিনয় করছেন বলে খবর বের হলেও প্রতিবারই খবরটি মিথ্যে হয়।

নতুন সিনেমায় কাজল

বিনোদন বাজার ॥ নব্বই দশকের তুমুল জনপ্রিয় অভিনেত্রী কাজল। শাহরুখ খানের সঙ্গে তার জুটি বলিউডের সেরা জুটির শীর্ষে। একটা সময় ছিলো শাহরুখ-কাজল মানেই সুপারহিট সিনেমা। বাজিগর, দিলওয়ালে দুলহানিয়া লে যায়েঙ্গে, কুচ কুচ হোতা হ্যায়, কাভি খুশি কাভি গাম থেকে শুরু করে সর্বশেষ দিলওয়ালে ছবিতেও কাজলকে অনবদ্য দেখা গেছে শাহরুখের বিপরীতে।

 

তবে কাজলকে সর্বশেষ অভিনয় করতে দেখা গেছে প্রদীপ সরকারের ‘হেলিকপ্টার ইলা’য়। সেই ছবিটি বেশ আলোচিত হলেও তেমন ব্যবসায়িক সাফল্য পায়নি।

 

নতুন খবর হলো আবারও ফিরছেন বলিউডের এই সুপারস্টার। তবে সিনেমা হলের জন্য নয়, কাজল অভিনয় করতে চলেছেন নেটফ্লিক্সের জন্য নির্মিত সিনেমায়।

 

জানা গেছে, ছবিটি পরিচালনা করবেন অভিনেত্রী রেণুকা সাহানে। ছবির নাম ‘ত্রিভঙ্গ’। ছবিতে আরও অভিনয় করবেন কুণাল রায় কাপুর, মিথিলা পালকার ও তন্বী আড়মি। তিন প্রজন্মের তিন গুরুত্বপূর্ণ মহিলা চরিত্রকে ঘিরে এগোবে ‘ত্রিভঙ্গ’র গল্প। গল্পে আশির দশক থেকে বর্তমানের চিত্র ফুটে উঠবে।

 

প্রথমবার ছবি পরিচালনা প্রসঙ্গে রেণুকা বলেছেন, ‘সুযোগটা পেয়ে খুব খুশি লাগছে। নেটফ্লিক্সের দৌলতে সারা বিশ্বের দর্শককে ছবি দেখাতে পারব। এ ছবির অন্যতম প্রযোজক অজয় দেবগণকে কৃতজ্ঞতা। তিনি আমাকে সাহস দিয়েছেন।’

 

এই প্রজেক্টের হাত ধরে ডিজিটালে ডেবিউ করছে অজয়ের প্রযোজনা সংস্থা। শিগগির ছবির শুটিং হবে মুম্বাইয়ে।

সারার যে গুণটি সবচেয়ে পছন্দ করেন বাবা সাইফ

বিনোদন বাজার ॥ বলিউডে অভিনয়ে আসার পর দর্শকদেরও মন জয় করে নিয়েছেন সারা আলি খান। অথচ ছোট থেকে অসম্ভব প্রাচুর্যের মধ্যে বড় হওয়া সারা বরাবরই অত্যন্ত মিষ্টভাষী ও আর পাঁচটা সাধারণের মতোই। ঠিক যেন পাশের বাড়ির মেয়ের মতোই তার আচরণ। সাংবাদিক থেকে দেহরক্ষী পর্যন্ত সবার সঙ্গে হাসিমুখে কথা বলেন সাইফকন্যা। এবার মেয়ের সেই গুণেরই প্রশংসায় পঞ্চমুখ হলেন সাইফ আলি খান।

 

মেয়ের প্রথম সিনেমা কেদারনাথে তার অভিনয় কেমন লেগেছে? উত্তর দিতে গিয়ে বেশ গর্বিত বাবা সাইফ। তিনি বলেন, ‘আমার মনে হয়, কেদারনাথে ও খুবই ভাল অভিনয় করেছে। আমার মেয়ে বলে নয়, ব্যক্তি হিসাবে আমার মনে হয় সে সবার সঙ্গেই ভীষণ খোলামেলা ব্যবহার করে।’

 

মেয়ের এমন গুণই তার পছন্দের বলে জানান সাইফ। তার মতে, সারাকে যারা চেনেন, তারাও নিশ্চয়ই এমনটা ভাবেন।

 

সাইফ জানান, কেদারনাথের একটি দৃশ্যে অভিনয়ের আগে তার কাছে সাহায্য চেয়েছিলেন সারা। তিনি বলেন, ‘কীভাবে দৃশ্যটি ফুটিয়ে তোলা যাবে সে বিষয়ে তখন আলোচনা করেছিলাম আমরা।’

 

অভিনয়ের ব্যাপারে মেয়েকে টিপস দিলেও চিত্রনাট্য বাছাই নিয়ে তার কোনও হাত নেই বলে সাফ জানিয়ে দিয়েছেন নবাব। তিনি বলেন, ‘এই ধরনের বিষয়ে কারও মতামত নেওয়া ঠিক নয়। নিজেই সিদ্ধান্ত নেওয়া উচিত।’

 

বর্তমানে নভদ্বীপ সিং পরিচালিত লাল কাপ্তান সিনেমার প্রচারে ব্যস্ত আছেন সাইফ। সিনেমার ট্রেলারে সম্পূর্ণ ভিন্ন একটি লুকে দেখা গিয়েছে এই অভিনেতাকে।

মিউজিক ভিডিওতে আগ্রহী শুভ

বিনোদন বাজার ॥ এ সময়ের জনপ্রিয় অভিনেতা আরেফিন শুভ। কিছুদিন আগে তার অভিনীত ‘সাপলুডু’ নামে একটি ছবি মুক্তি পায়। এ ছবিতে তার অভিনয় প্রশংসিত হয়। এ মুহূর্তে ‘মিশন এক্সট্রিম’ নামে একটি ছবির শুটিং নিয়ে ব্যস্ত আছেন। সিনেমার ব্যস্ততার মধ্যেও এ অভিনেতার খুব ইচ্ছা মিউজিক ভিডিওতে অভিনয় করার।

 

সাপলুডু ছবিটি মুক্তির আগে কলকাতার একটি মিউজিক ভিডিওতে মডেলিং করার কথা ছিল তার; কিন্তু ছবির প্রমোশন ও প্রচারণা নিয়ে ব্যস্ততার কারণে সেখানে কাজ করা হয়নি। তবে ভালো কথা ও সুন্দর গল্পের মিউজিক ভিডিওতে কাজ করতে চান তিনি।

 

এ প্রসঙ্গে আরেফিন শুভ বলেন, ‘আসলে গান তো ছবির একটি অংশ, ছবির গল্পের সঙ্গে মিলিয়েই গান করা হয়। এখন অনলাইনের যুগে অনেক মিউজিক ভিডিও সুন্দর সুন্দর গল্পে নির্মিত হচ্ছে। পছন্দের গল্প এবং শ্রুতিমধুর কথার গানের প্রস্তাব পেলে অবশ্যই অভিনয় করব।’

কাজে ফিরছেন আনুশকা

বিনোদন বাজার ॥ আনুশকাকে শেষবার দেখা গেছে আনন্দ এল রাইয়ের ‘জিরো’ ছবিতে শাহরুখ খানের বিপরীতে। যদিও ছবিটি আশানুরূপ ব্যবসা করতে পারেনি। তাকে শুধু বিরাট কোহেলির সঙ্গে খবরে পাওয়া গেলেও ছবির খবরে পাওয়া যাচ্ছিল না। বিয়ের পর কাজের চাপে সংসার কী, তা-ই টের পাননি। সেই স্বাদ নিতে বলিউড থেকে সাময়িক এই বিরতি নিয়েছিলেন। দেখা মিলত বিভিন্ন পার্টি ও আওয়ার্ড অনুষ্ঠানে। এবার তাকে দেখা যাবে অমিতাভ বচ্চনের সুপারহিট ছবি ‘সাত্তে পে সাত্তা’ রিমেকে। তার বিপরীতে অভিনয় করবেন ঋত্বিক রোশন। যদিও তবে প্রথমে শোনা যাচ্ছিল এতে অভিনয় করবেন দীপিকা পাড়ুকোন। ফারাহ খান আর রোহিত শেঠি যৌথভাবে ছবিটি পরিচালনা করবেন। আনুশকা খবরটি নিশ্চিত করেছেন। এমনটি হলে প্রথমবারের মতো জুটি হবেন আনুশকা ও ঋত্বিক। ২০২০ সালের শুরুর দিকে ছবিটির কাজ শুরু হবে আর মুক্তি পাবে তার পরের বছরের শুরুর দিকে। ঋত্বিক বর্তমানে ‘ওয়ার’ ছবির তুমুল সাফল্যে ভাসছেন। অ্যাকশন ফ্লিক ঘরানার ছবিটি বক্স অফিসে দুর্দান্ত স্কোর করছে। ঋত্বিক আর টাইগার শ্রফ অভিনীত এই ছবি ইতোমধ্যে আয়ে ৩০০ কোটির ঘর ছাড়িয়েছে।

মাকে নিয়ে নিশিতার গান

বিনোদন বাজার ॥ ‘তোমাকেই খুঁজছে বাংলাদেশ’ নামে রিয়েলিটি শো থেকে উঠে আসা সঙ্গীতশিল্পী নিশিতা বড়ুয়া। ক্যারিয়ারের শুরু থেকে এখনও নিয়মিত গান করছেন। এবার মাকে নিয়ে একটি গান করেছেন এ সঙ্গীতশিল্পী।

 

‘আমার এক পাল্লাতে পৃথিবী দাও, এক পাল্লাতে মা, তবু মায়ের দামে পৃথিবীটাও কিনতে চাই না’- এমন কথার গানটি লিখেছেন এবং সুর করেছেন জাহাঙ্গীর রানা। সঙ্গীতায়োজন করেছেন জাহিদ হাসান বাবু। গানটির ভিডিও পরিচালনা করেছেন শিল্পী নিজেই। এবারই প্রথম মিউজিক ভিডিও নির্মাণ করেছেন তিনি।

 

নিশিতা বলেন, ‘মাকে নিয়ে গাওয়া এ গানটি গেল মা দিবসে প্রকাশের ইচ্ছা ছিল। কিন্তু সে সময় প্রকাশ পেলে তা খুব তাড়াহুড়া করেই করা হতো। আমার নিজেরই ভালো লাগছিল না। যে কারণে একটু সময় নিয়ে যতœ করে গানটি প্রকাশ করেছি। মিউজিক ভিডিও নির্মাণ করেছি আমি নিজেই। তবে এটি নিয়মিত করতে চাই না। কারণ অনেক কাজ একসঙ্গে করলে আইডিনটিটি ক্রাইসিসে পড়তে হয়। গানেই পূর্ণ মনোযোগ দিতে চাই। মা গানটি শোনার জন্য বিশেষ অনুরোধ রইলো।’

 

১১ অক্টোবর গানটি প্রকাশিত হয়েছে পরানের গান নামে একটি ইউটিউব চ্যানেলে। এদিকে আরেকটি ইউটিউব চ্যানেলে প্রকাশিত হয়েছে নিশিতার নতুন গান ‘মেঘলা আকাশ’। বর্তমানে স্টেজ শো নিয়েই ব্যস্ত সময় কাটাচ্ছেন এ সঙ্গীতশিল্পী।

গান্ধী শান্তি পুরস্কার পেলেন রামেন্দু মজুমদার

বিনোদন বাজার ॥ ভারতের গান্ধী শান্তি প্রতিষ্ঠান প্রবর্তিত গান্ধী মেমোরিয়াল শান্তি পুরস্কার পেলেন বাংলাদেশের বিশিষ্ট সাংস্কৃতিক ব্যক্তিত্ব রামেন্দু মজুমদার। গত ১০ অক্টোবর নৈহাটিতে সংস্থার পশ্চিমবঙ্গ শাখা ও টাইমস্ অব ইন্ডিয়া আয়োজিত এক অনুষ্ঠানে রাজ্যের দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা মন্ত্রী জাভেদ আহমেদ খান রামেন্দু মজুমদারের হাতে এ সম্মাননা তুলে দেন।

প্রবীণ মূকাভিনেতা বৈদ্যনাথ চক্রবর্তীকেও এ পুরস্কার প্রদান করা হয়। ঐকতানের সমরেশ বসু সেমিনার কক্ষে মহাত্মা গান্ধীর সার্ধশত জন্মবার্ষিকী উপলক্ষে আয়োজিত অনুষ্ঠানে স্বাগত ভাষণ দেন সংস্থার পশ্চিমবঙ্গ শাখার সভাপতি ড. অনিরুদ্ধ মজুমদার।

রামেন্দু মজুমদার এ অনুষ্ঠানে গান্ধী স্মারক বক্তৃতাও প্রদান করেন। বক্তৃতার বিষয় ছিল ‘মহাত্মা ও বঙ্গবন্ধু: অহিংসার দুই মূর্ত প্রতীক’।

প্রসঙ্গত, রামেন্দু মজুমদার খ্যাতিমান বাংলাদেশী অভিনেতা ও মঞ্চ নির্দেশক। তিনি ঢাকার মঞ্চ নাটক আন্দোলনের পথিকৃত। মঞ্চের পাশাপাশি তিনি টেলিভিশন ও চলচ্চিত্রেও অভিনয় করেছেন। শিল্পকলায় অবদানের জন্য বাংলাদেশ সরকার তাকে ২০০৯ সালে বাংলাদেশের দ্বিতীয় সর্বোচ্চ বেসামরিক সম্মাননা একুশে পদকে ভূষিত করে।

পুতুলের নতুন গান

বিনোদন বাজার ॥ সঙ্গীতশিল্পী পুুতুলের একটা আলাদা গ্রহণযোগ্যতা আছে। কথা প্রধান গান করতে চেষ্টা করেন তিনি সবসময়ই। গানের পাশাপাশি মাঝে মাঝে তাকে বিশেষ অনুষ্ঠানের উপস্থাপনাতেও দেখা যায়। লেখালেখিতেও রয়েছে তার বেশ সুনাম।

সম্প্রতি নতুন একটি গানে কণ্ঠ দিলেন পুতুল। ‘চোখের কোণে জল’ শিরোনামের গানটির কথা লিখেছেন সাংবাদিক মাহতাব হোসেন। সুর-সঙ্গীতায়োজন করেছেন রাজন সাহা। এবারই প্রথম পুতুল রাজন সাহার সুর সঙ্গীতে গান গাইলেন।

গানটিতে কণ্ঠ দেয়া প্রসঙ্গে পুতুল বলেন, ‘অনেকদিনের ইচ্ছে ছিলো রাজন দা’র সুরে গান গাওয়ার। অবশেষে গতকাল সেই ইচ্ছেটা পূরণ হলো আমার। গানের কথাও এক কথায় অসাধারণ। মন ছুঁয়ে গেছে। রাজন দা’র গুছিয়ে কাজ করার সুদূরপ্রসারী পরিকল্পনা আমার ভীষণ ভালো লেগেছে।

মনোমুগ্ধকর কাব্যিক গীতিকবিতা আর মনের মতো সুর, সবমিলিয়ে একটি দুর্দান্ত গান হয়েছে। আমি খুবই আশাবাদী গানটি নিয়ে।’

এই গানটি ছাড়াও পুতুল এরইমধ্যে আরো নতুন দুটি গানে কণ্ঠ দিয়েছেন। গান দুটি হচ্ছে ‘ঝুম বৃষ্টিতে’ এবং ‘কফির চুমুকে’। গানগুলো লিখেছেন কনা চৌধুরী। আমিরুল ইসলাম তামিম গানগুলোর সুর করেছেন এবং সঙ্গীতায়োজন করেছেন শান।

প্রসঙ্গত, চোখের কোণে জল গানটি শিগগিরই একটি ইউটিউব চ্যানেলে প্রকাশ পাবে।

আদনান সামি কি পাকিস্তানি গুপ্তচর!

বিনোদন বাজার ॥ পাকিস্তানি বংশোদ্ভূত জনপ্রিয় গায়ক আদনান সামি কি পাকিস্তানি গুপ্তচর এ নিয়ে ভারতে বিতর্কের শেষ নেই।

তবে বহুবার ভারত বনাম পাকিস্তানের মধ্যে সংঘাতে ভারতের সমর্থনেই নিজেকে তুলে ধরেছেন আদনান। আর তা নিয়ে বারবার ক্ষোভ প্রকাশ করেছেন বহু পাকিস্তানি।

বহু পাকিস্তানি আদনানকে কটাক্ষ করে দাবি করেছেন, তিনি ভারতে অবস্থিত পাকিস্তানি গুপ্তচর সংস্থার এজেন্ট। আর সেই কটাক্ষের জবাবও দিয়েছেন আদনান সামি।

এক পাকিস্তানি কয়েক দিন আগেই সোশ্যাল মিডিয়ায় দাবি করেন ভুলে গেলে চলবে না যে ভারতে এখন আমাদের আইএসআই এজেন্ট রয়েছেন আদনান সামি।

এর জবাবে আদনান সামি বলেন, না আমি ব্যর্থ। তবে আপনাদের সবাইকে যা ‘ইন্টেলিজেন্স’ আমি দিয়ে এসেছি, তাতেও আপনারা বোকাই রয়ে গেছেন।

প্রসঙ্গত ব্রিটেনে জন্মানোর পর পাকিস্তানি বংশোদ্ভূত এ গায়ক সেভাবে পাকিস্তানে বসবাস করেননি। বলিউডে তার ক্যারিয়ার শুরু হওয়ার পর থেকে তিনি ভারত ছেড়ে পাকিস্তান ফিরে যেতে চাননি। তার পর থেকেই এখন আদনান সামি ভারতের বাসিন্দা হিসেবে নাগরিকত্ব লাভ করেছেন। সূত্র: ওয়ান ইন্ডিয়া

বউয়ের বিয়ে দেয়ার জন্য পাত্র খুঁজছেন জামিল

বিনোদন বাজার ॥ বিয়ের ৬ মাস পূর্ণ হয়েছে শামিম-কুলসুম দম্পতির। বেশ ভালোই চলছে তাদের সংসার। কিন্তু হঠাৎ করেই শামিম মরিয়া হয়ে উঠে তার বউয়ের বিয়ে দেয়ার জন্য। ‘জরুরি ভিত্তিতে পাত্র চাই’ লিখে বিজ্ঞাপনও দিয়েছে সে। বিজ্ঞাপন দেখে পাত্রের লাইন পরে কুলসুমের বাড়িতে। এমনই গল্প নিয়ে নির্মিত হয়েছে ‘আমার বউয়ের বিয়ে’।
নাটকটির রচনা ও পরিচালনা করেছেন আরিফুর রহমান নিয়াজ। নাটকটিতে শামিম চরিত্রে অভিনয় করেছেন জামিল হোসাইন ও কুলসুম চরিত্রে অভিনয় করেছেন কাজল সুবর্ণ।
নাটকটিতে আরও অভিনয় করেছেন শিরিন আলম, জুয়েল হাসান প্রমুখ। নির্মাতা জানালেন সম্প্রতি, পূবাইলের বিভিন্ন লোকেশনে এরই মধ্যে চিত্রায়ণ সম্পন্ন হয়েছে নাটকটির। চিত্রায়ণ শেষে চলছে সম্পাদনার কাজ।
এই নাটকে অভিনয় প্রসঙ্গে জামিল হোসাইন বলেন, ‘প্রথমে নাটকের নাম শুনে চমকে উঠি। নিজের বউয়ের বিয়ে! তবে পুরো চিত্রনাট্য হাতে পাওয়ার পর দেখলাম শুধু কমেডি না, কমেডির ছলে সুন্দর একটি বার্তা দেয়ার চেষ্টা করেছেন পরিচালক নিয়াজ। আশা করি নাটকটি সবার কাছে গ্রহণযোগ্যতা পাবে।’
কাজল সুবর্ণ বলেন, ‘আমার স্বামী আমাকে আবার বিয়ে দিতে চায়। কারণ আমার ভালো মন্দ সে না দেখলে কে দেখবে! এমনই ভাবনা চিন্তা নিয়ে এগিয়ে চলে নাটকের গল্প। মজার গল্পটি অসাধারণ ভাবে ফুটিয়ে তোলার চেষ্টা করেছেন পরিচালক নিয়াজ।’
নির্মাতা আরিফুর রহমান নিয়াজ জানান, এ নাটকে ‘আকাশ ভাইঙ্গা ঠাডা পরুক’ শিরোনামে একটি গানও থাকছে রয়েছে। শামিম খানের কথা ও ওসমান সজীবের সুরে কমেডি ধাঁচের গানটিতে কণ্ঠ দিয়েছেন মিথিলা, মিলন।

অস্কারজয়ী অভিনেত্রী জেন ফন্ডা আটক

বিনোদন বাজার ॥ অস্কারজয়ী ৮১ বছর বয়সী অভিনেত্রী জেন ফন্ডাকে আটক করেছে মার্কিন পুলিশ।

স্থানীয় সময় শুক্রবার যুক্তরাষ্ট্রের ক্যাপিটাল হিল থেকে তাকে আটক করা হয়।

জলবায়ু পরিবর্তনের বিরুদ্ধে বিক্ষোভে অংশ নেয়ার সময় এই অভিনেত্রীকে আটক করে পুলিশ।

ক্যাপিটল হিলের ইস্ট ফ্রন্টে বেআইনিভাবে বিক্ষোভ করায় ১৬ জনকে আটক করা হয়েছে বলে জানিয়েছে পুলিশের এক মুখপাত্র।

আন্তর্জাতিক সংবাদমাধ্যম সিএনএন জানিয়েছে, শুক্রবার জলবায়ু পরিবর্তনের বিরুদ্ধে এবং পরিবেশ রক্ষার দাবিতে বিক্ষোভ করছিলেন জেন ফন্ডা। সে সময় বিক্ষোভকারীদের মধ্যে থেকে কয়েকজনের আটক করে পুলিশ। এসময় আটক হন জেন ফন্ডাও। এরপর তাকে পুলিশি হেফাজতে পাঠানো হয়।

জেন ফন্ডারের গ্রেফতারের দৃশ্যটি ভিডিও করে ইতিমধ্যে দেশটির সামাজিক যোগযোগমাধ্যম ফেসবুকে পোস্ট করা হয়েছে।

সেখানে দেখা গেছে, উজ্জ্বল লাল রঙের ওভারকোট পরে বিক্ষোভে অংশ নেন জেন ফন্ডা। বিক্ষোভে তাকে জলবায়ু পরিবর্তনের বিরুদ্ধে স্লোগান দিতে দেখা গেছে। একপর্যায়ে তার দুহাতে হ্যান্ডকাফ পরিয়ে বিক্ষোভরতদের কাছ থেকে তাকে দূরে সরিয়ে নেয় পুলিশরা।

জলবায়ু দূষণের বিরুদ্ধে সবসময়ই সোচ্চার ছিলেন জেন ফন্ডা। এ বিষয়ে নানা কর্মসূচিতে অংশ নিতেন তিনি। সম্প্রতি লসঅ্যানজেলেস টাইমসকে দেয়া এক সাক্ষাৎকারে সুইডিশ জলবায়ু বিষয়ক অধিকারকর্মী গ্রেটা থানবার্গের মতো বৈশ্বিক উষ্ণায়নের বিরুদ্ধে লড়াই করার ইচ্ছা প্রকাশ করেন জেন ফন্ডা।

বাগদান ভাঙা নিয়ে যা বললেন চিত্রনায়িকা জলি

বিনোদন বাজার ॥ চিত্রনায়িকা জলি বাগদান ভাঙেনি, এমন দাবি করেছেন জলি নিজেই। খবরটিকে ভিত্তিহীন বলে দাবি করেন তিনি।

পাঁচ বছর প্রেমের পর সেই সম্পর্ককে পরিণতির দিকে নিয়ে যান জলি। সে লক্ষ্যে চলতি বছরের ১৬ মে সন্ধ্যায় গুলশানের নিকেতনে বাবার বাসায় পরিবারের সব সদস্য নিয়ে ব্যবসায়ী আরাফাত রহমানের সঙ্গে বাগদান অনুষ্ঠান সারেন জলি।

দুই পরিবারের লোকজনের উপস্থিতিতে সেদিন জলিকে আংটি পরিয়ে দেন আরাফাত রহমান। সময় ও সুযোগ বুঝে খুব শিগগির বিয়ের দিনক্ষণ ঠিক করা হবে বলে জানিয়েছিলেন জলি।

এ খবরের চার মাস পার হতে না হতেই শোবিজ অঙ্গনে গুঞ্জন ওঠে চিত্রনায়িকা জলির বাগদান ভেঙে গেছে।

বাগদান ভেঙে যাওয়ার কথা গণমাধ্যমের কাছে নাকি নিজেই স্বীকার করেছেন জলি।

আরাফাতের সঙ্গে এখন তার কোনো সম্পর্ক ও যোগাযোগ নেই বলে নাকি জানিয়েছেন তিনি।

এমন সব গুঞ্জনের মুখে জলির সঙ্গে যোগাযোগ করা হলে তিনি বলেন, ‘এই সংবাদ দেখে আমি বেশ অবাক হয়েছি। এই সংবাদের কোনো ভিত্তি নেই। এটি ভিত্তিহীন একটি খবর।’

তিনি আরও বলেন, ‘আমার বাগদানের খবরটি কিন্তু আমি সবাইকে দিয়েছিলাম। যে খবরটি প্রচার হচ্ছে তা যদি সত্য হতো তা আমিই দিতাম।’

তিনি একটি গণমাধ্যমকে স্পষ্ট করে বলেন, ‘আমাদের বাগদান ভাঙেনি, কোনো মান-অভিমানও হয়নি। সব কিছু স্বাভাবিক আছে।’

এমন গুজব না ছড়াতে অনুরোধ করে জলি বলেন, ‘এমন গুজব ছড়ালে আমারই ক্ষতি। এ সংবাদ শ্বশুরবাড়ির লোকজনদের নজরে এলে, তারা বিষয়টি ভালোভাবে নেবেন না। দয়া করে এসব গুজব ছড়াবেন না।’

প্রসঙ্গত কলকাতার নায়ক ওমের সঙ্গে ‘অঙ্গার’, আরিফিন শুভর সঙ্গে ‘নিয়তি’ আর শাহরিয়াজের সঙ্গে ‘মেয়েটি এখন কোথায় যাবে’ সিনেমায় অভিনয় করে এরই মধ্যে আলোচিত হন জলি।

নেশায় ক্যারিয়ার শেষ যেসব বলিউড তারকাদের

বিনোদন বাজার ॥ প্রত্যেকেই দক্ষ অভিনেতা-অভিনেত্রী। অথচ অ্যালকোহল এবং ড্রাগের নেশা তাদের ক্যারিয়ার শেষ করে দিয়েছিল এমন কয়েকজন তারকাদের কথা তুলে ধরা হলো এ আয়োজনে।

ধর্মেন্দ্র : ১৫ বছর ধরে অ্যালকোহলের নেশায় বুঁদ ধর্মেন্দ্র। তার ছবি ‘ইয়েমলা পাগলা দিওয়ানা’ মুক্তি পাওয়ার সময় তিনি নিজে মুখে স্বীকারও করেন যে, তার ক্যারিয়ার অ্যালকোহলের জন্য শেষ হয়ে গিয়েছিল।

মীনা কুমারী : বলিউডের ট্র্যাজেডি কুইন। এই নামেই তিনি জনপ্রিয় ছিলেন। সাহেব বিবি গোলাম ফিল্মে অ্যালকোহলিক স্ত্রীয়ের ভূমিকায় অভিনয় করেছিলেন তিনি। তার অভিনয় ভীষণ প্রশংসিত হয়েছিল। পরে বাস্তবেও তিনি অ্যালকোহলের নেশায় ডুবে যান। লিভার সিরোসিসে আক্রান্ত হয়ে মাত্র ৪০ বছর বয়সে তার মৃত্যু হয়।

বিজয় রাজ : না জেনে কাকের মাংসের বিরিয়ানি খেয়ে ফেলেছিলেন। কথা বলতে গেলেই ‘কা কা’ শব্দ বেরুচ্ছিল মুখ থেকে। রান-এর সেই কৌয়া বিরিয়ানি অভিনেতা বিজয় রাজ ২০০৫ সালে দুবাই পুলিশের হাতে গ্রেপ্তার হয়েছিলেন। তার সঙ্গে বেআইনি ড্রাগ ছিল। ড্রাগের নেশার ছাপ পড়ে তার ক্যারিয়ারেও।

মনীষা কৈরালা : মনীষা কৈরালা তখন তার ক্যারিয়ারের শীর্ষে, সে সময়ই তিনি অ্যালকোহলে নেশাগ্রস্ত হয়ে পড়েন। মনে করা হয়, তার স্বামী সম্রাট দাহালের সঙ্গে তার সম্পর্কের অবনতিই এই নেশার কারণ। ডিভোর্সের পর তার জরায়ুতে ক্যান্সার হয়। চিকিৎসা করিয়ে এই মারণরোগের সঙ্গে তিনি যুদ্ধ করে চলেছেন এখন।

দিব্যা ভারতী : মাত্র ১৯ বছর বয়স থেকেই অ্যালকোহলের নেশা চেপে ধরে তাকে। এই নেশা শুধু তার ক্যারিয়ারও ধ্বংস করে দেয়নি, সাততলা থেকে তিনি পড়ে গিয়ে মারা যান। পরে ময়নাতদন্তে জানা গিয়েছিল, ওই সময় অত্যধিক অ্যালকোহল সেবন করেছিলেন তিনি।

পারভীন ববি : এক সময়ের ভীষণ গর্জিয়াস এই নায়িকার জীবন কিন্তু খুবই হতাশার। মহেশ ভাটের সঙ্গে তার বিচ্ছেদের পর তিনি এলএসডিতে আসক্ত হয়ে পড়েন। তার পাশাপাশি চলত বাঁধনহীন অ্যালকোহল সেবন। এই অভ্যাস শুধু তার ক্যারিয়ারই শেষ করে দেয়নি, জীবনটাও শেষ করে দিয়েছিল।

রাজেশ খান্না : দীর্ঘ সময় তিনি ইন্ডাস্ট্রিতে রাজ করেছেন। তার ১৫টা ফিল্ম পর পর সুপার হিট হয়েছিল। কিন্তু এই স্টারডম সামলাতে পারেননি তিনি। নেশাগ্রস্ত হয়ে যান। সারাদিনই অ্যালকোহল তার সঙ্গী ছিল। লিভার খারাপ হয়ে যায়।

সঞ্জয় দত্ত : মুন্নাভাইকে ড্রাগ এবং অ্যালকোহলের নেশার জন্য অনেক মূল্য চোকাতে হয়েছে। ক্যারিয়ারে প্রচুর ক্ষতি তো হয়েইছে, পাশাপাশি তার প্রেমিকা টিনা মুনিমও তাকে ছেড়ে চলে গিয়েছিলেন এই নেশার জন্য।

ফারদিন খান : বলিউড তাকে প্রায় ভুলতেই বসেছে। তিনি একসময় ড্রাগের নেশায় বুঁদ ছিলেন। কোকেইন কিনতে গিয়ে গ্রেপ্তারও হয়েছিলেন।

হানি সিং : র‌্যাপার-গায়ক হানি সিংও অ্যালকোহল এবং ড্রাগের নেশায় বুঁদ হয়ে গিয়েছিলেন এক সময়। এই নেশা তাকে এতটাই কাবু করে ফেলেছিল যে, রিহ্যাবিলিটেশন সেন্টারে তাকে থাকতে হয়েছিল চিকিৎসার জন্য।

সৃজিতের সিনেমার কঠোর সমালোচনা করলেন তসলিমা নাসরিন

বিনোদন বাজার ॥ নেতাজি সুভাষ চন্দ্র বসু হারিয়ে যান ১৯৪৫ সালে। তারপর থেকে আর খোঁজ মেলেনি তার। কখনও জাপানে বিমান দুর্ঘটনায় তার মৃত্যুর কথা বলা হয়, কখনও বলা হয় উত্তরপ্রদেশে এক সাধুর বেশে হাজির হন নেতাজি। সেই সাধু বাবার নাম ছিলো গুমনামি বাবা। ইতিহাসের এমন গল্প নিয়ে ‘গুমনামি’ সিনেমাটি নির্মাণ করেছেন সৃজিত মুখোপাধ্যায়।

 

গত ২ অক্টোবর কলকাতায় মুক্তি পায় শ্রীকান্ত মোহতা ও মহেন্দ্র সোনি শ্রীভেঙ্কটেশ ফিল্মসের ব্যানারে নির্মিত ‘গুমনামি’ সিনেমাটি। এতে গুমনামি বাবার চরিত্রে অভিনয় করছেন প্রসেনজিৎ চট্টোপাধ্যায়। সম্প্রতি সিনেমাটি দেখেছেন তসলিমা নাসরিন। সিনেমাটি দেখে এসে ফেসবুকে নিজের অভিমন ব্যক্ত করেন তিনি।

 

এক স্ট্যাটাসে তসলিমা নাসরিন লিখেছেন, ‘গুমনামি দেখলাম। টরচার বটে। ডকুমেন্টারি ফিল্ম বেইসড অন অফুরন্ত আবেগ এবং ফ্লিমজি প্রমাণ। বই পোড়ানো, আত্মহত্যার চেষ্টা, কান্নাকাটি। এগুলো কোনও সিরিয়াস রিসার্চার করে? সিরিয়াস ইস্যু নিয়ে সিরিয়াস কথাবার্তা নেই, শক্ত শক্ত প্রমাণ খাড়া করানো নেই, বুদ্ধিদীপ্ত যুক্তি-তর্ক নেই।

 

চিপ একখানা ছোটদের রহস্য উদঘাটন মুভি। শেষের দিকে এক দৃশ্যে নেতাজি মৃত্যুর ওপার থেকে এসে বলছেন, আমাকে নিয়ে গবেষণা থামিও না, করে যাও! এসেছিলেনই যখন, বলেই যেতে পারতেন কিভাবে মৃত্যু হয়েছিল তাঁর!

 

এ ছবিতে কে বলেছে সব থিওরিকে গুরুত্ব দেওয়া হয়েছে! সব গুলোকে বরং মিথ্যে ঘোষণা করে সুভাষ বসুকে গুমনামি বাবা হিসেবে দেখাতে যত চোখের জল ফেলতে হয় ফেলেছেন সৃজিত। সৃজিতের দরকার অলিভার স্টোনের কন্সপিরেসি ছবিগুলো দেখা। এক জেএফকেই মনোযোগ দিয়ে দেখলে যথেষ্ট।’

 

উল্লেখ্য, নেতাজি সুভাষ বসু মারা গেছেন নাকি বেঁচে আছেন তা নিয়ে সকলে যখন ভাবছেন, ঠিক তখন ১৯৭০ সালে উত্তর প্রদেশের এই গুমনামি বাবার আর্বিভাব হয়। গুমনামি বাবাকে নেতাজি মনে করতেন অনেকেই। এই গুমনামি বাবার মুখের আদল নাকি এক্কেবারে নেতাজির মতো।

 

গুমনামি বাবার কাছে নাকি এমন তথ্য ছিল তা নাকি একমাত্র নেতাজির কাছেই থাকা সম্ভব। শোনা যায়, গুমনামি বাবার বাক্সে নাকি আজাদহিন্দের বেশকিছু চিঠিপত্র পাওয়া গিয়েছিল। গুমনামি বাবা নাকি এমন অনেক কিছুই ব্যবহার করতে যা নেতাজিও ব্যবহার করতেন। তবে গুমনামি বাবা নিজে কখনও বলেননি যে তিনিই নেতাজি। ১৯৮৫ সালে মৃত্যু হয় এই গুমনামি বাবার।

শেষ সুযোগ চাইলেন ইলিয়াস কোবরা

বিনোদন বাজার ॥ ঢাকাই সিনেমার খলনায়কের এক অনন্য নাম ইলিয়াস কোবরা। পাঁচ শতাধিক সিনেমায় অভিনয় করেছেন তিনি। এখনও অভিনয় করে চলেছেন। সিনেমা দর্শকের পাশাপাশি চলচ্চিত্র শিল্পীদের কাছেও প্রিয় মানুষ তিনি। বাংলাদেশ চলচ্চিত্র শিল্পী সমিতির নির্বাচনে এবার জায়েদ খানের বিপরীতে সাধারণ সম্পাদক পদে লড়বেন ইলিয়াস কোবরা।

 

জনপ্রিয় এই অভিনেতা জানালেন, এবারই শেষবারের মতো শিল্পী সমিতির নির্বাচনে অংশ নিচ্ছেন তিনি। এরপর আর শিল্পী সমিতির নির্বচন করবেন না।

 

আগামী ২৫ অক্টোবর অনুষ্ঠিত হবে বাংলাদেশ চলচ্চিত্র শিল্পী সমিতির ২০১৯-২১ মেয়াদের এ দ্বিবার্ষিক নির্বাচন। আর মাত্র ১৪ দিন বাকি আছে নির্বাচনের। সবার মতই নির্বাচনী প্রচারণা শুরু করেছেন কোবরাও।

 

ইলিয়াস কোবরা বলেন, ‘আমি চট্টগ্রামে বদিউল আলম খোকনের ‘আগুন’ সিনেমার শুটিং নিয়ে ব্যস্ত ছিলাম। গত ২৪ সেপ্টেম্বর থেকে টানা শুটিং করেছি। শুটিং শেষ করে ফিরে নির্বাচনের মাঠে নেমেছি।

 

এর আগেও নির্বাচন করেছি। ভেবে দেখলাম, সেবামূলক কাজের জন্য সেবক দরকার। এ কারণে সবার ভালবাসা নিয়ে আমি নির্বাচনে দাঁড়িয়েছি। আমি সততার সাথে চলচ্চিত্র শিল্পী হিসেবে ৩৫ বছর ধরে কাজ করছি। ছোটবেলা থেকে সেবা মূলক নানা সংগঠন করেছি আমি। সবমিলিয়ে আমি কাজে কর্মে বিশ্বাসী। তা প্রমাণ করে যাবো।’

 

ইলিয়াস কোবরা আরও বলেন, ‘ভোটের নীতিমালায় বাসায় গিয়ে ভোটারদের কাছে ভোট চাওয়া নিষেধ। তাই ফোন করে সবার কাছে ভোট চাচ্ছি। শেষবারের মতো কাজ করার একটা সুযোগ চাই। মিশা সওদাগর-জায়েদ খান দুই বছর দায়িত্ব পালন করেছে তাদের কাছে কি পেয়েছেন? আপনারাই ভালো জানেন। আপনাদের মন যদি সাড়া দেয় আমাকে ভোট দিবেন।’

 

সমিতির ২১টি পদের মধ্যে নির্বাচন হবে ১৮টি পদের। জানা গেছে, ১৮ পদের জন্য এবার প্রতিদ্বন্দ্বিতা করবেন মোট ২৭ জন প্রার্থী। সভাপতি পদে লড়বেন চিত্রনায়িকা মৌসুমী ও মিশা সওদাগর।

 

নির্বাচনকে সামনে রেখে গঠিত হয়েছে মিশা-জায়েদ প্যানেল। এই প্যানেল থেকে মিসা সওদাগর সভাপতি পদে ও জায়েদ খান সাধারণ সম্পাদক পদে লড়বেন। এছাড়া এই প্যানেল থেকে সহ-সভাপতি পদে লড়ছেন মাসুম পারভেজ রুবেল, মনোয়ার হোসেন ডিপজল।

 

মিশা-জায়েদ প্যানেলে সহ-সাধারণ সম্পাদক পদে আরমান, আন্তর্জাতিক বিষয়ক সম্পাদক পদে মামুনুন হাসান ইমন, দপ্তর ও প্রচার সম্পাদক পদে জ্যাকি আলমগীর, কোষাধ্যক্ষ পদে ফরহাদ, সাংস্কৃতি ও ক্রিড়া সম্পাদক পদে জাকির হোসেন, সাংগঠনিক সম্পাদক পদে সুব্রত লড়াই করছেন।

 

মিশা-জায়েদ প্যানেল কার্যনির্বাহী সদস্য পদে আছেন অঞ্জনা, রোজিনা, অরুণা বিশ্বাস, আলি রাজ, বাপ্পারাজ, আফজাল শরীফ, মারুফ, আসিফ ইকবাল, আলেক জান্ডার বো, জেসমিন, জয় চৌধুরী।

 

সহ-সাধারণ সম্পাদক পদে নির্বাচন করছেন সাংকোপাঞ্জা, সংস্কৃতি ও ক্রীড়া সম্পাদক পদে নির্বাচন করছেন ডন, আন্তর্জাতিক বিষয়ক সম্পাদক পদে ইমনের সাথে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন নূর মোহাম্মদ খালেদ আহমেদ। এছাড়া কার্য নির্বাহী সদস্য পদে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করবেন শামীম খান, মারুফ আকিব, রোঞ্জিতা, নাসরিন।