তিস্তাসহ অভিন্ন নদীর পানি বণ্টন আলোচনায় ইতিবাচক অগ্রগতি হয়েছে – কাদের

ঢাকা অফিস ॥ তিস্তাসহ অভিন্ন নদীর পানি বণ্টনের আলোচনায় ইতিবাচক অগ্রগতি হয়েছে বলে জানিয়েছেন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক এবং সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের। গতকাল সোমবার সচিবালয়ের কার্যালয়ে বাংলাদেশে নিযুক্ত ভারতের হাইকমিশনার রীভা গাঙ্গুলী দাসের বিদায়ী সৌজন্য সাক্ষাৎ শেষে ব্রিফিংয়ে ওবায়দুল কাদের এ তথ্য জানান। ভারতীয় ঋণ কর্মসূচির আওতায় দেশের সড়ক অবকাঠামো উন্নয়ন, বিআরটিসির জন্য বাস ও ট্রাক এবং সড়ক উন্নয়নে যন্ত্রপাতি সংগ্রহে অর্থায়নের জন্য বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রীর পক্ষ থেকে ভারত সরকারকে ধন্যবাদ জানান সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী। তিনি বলেন, বাংলাদেশ ও ভারতের মধ্যে বন্ধুত্বপূর্ণ সম্পর্ক বহুমাত্রিক। একুশ বছর দুই দেশের মধ্যে সম্পর্কের যে কৃত্রিম দেয়াল ছিল তা এখন আর নেই। দুই দেশের সরকার এবং জনগণের মাঝে সম্পর্ক উন্নয়নে বাংলাদেশ ও ভারতের প্রধানমন্ত্রী অত্যন্ত উদার এবং ভবিষ্যৎমুখী বলে জানান ওবায়দুল কাদের। মন্ত্রী বলেন, প্রতিবেশী দেশের সাথে সুসম্পর্ক ও পারস্পরিক বোঝাপড়া ভালো থাকলে যেকোনো সমস্যার সমাধান সহজতর হয়। সীমান্ত সমস্যা ও ছিটমহল বিনিময়ের মতো দীর্ঘকালীন সমস্যার সমাধান তারই উদাহরণ। সাক্ষাৎকালে দেশের সড়ক যোগাযোগ অবকাঠামো উন্নয়নে ভারতীয় ঋণ কর্মসূচির আওতায় গৃহীত প্রকল্পসমূহ এগিয়ে নিতে সড়ক পরিবহন ও সেতু মন্ত্রণালয়ের সহযোগিতার জন্য হাইকমিশনার মন্ত্রীকে ধন্যবাদ জানান।

করোনায় শনাক্ত সাড়ে ৩ লাখ ছাড়ালো, মৃত্যু ৫ হাজার ছুঁইছুঁই

ঢাকা অফিস ॥ দেশে গত ২৪ ঘণ্টায় করোনা শনাক্ত হয়েছেন এক হাজার ৭০৫ জন। এ নিয়ে এখন পর্যন্ত ৩ লাখ ৫০ হাজার ৬২১ জন শনাক্ত হলেন। অন্যদিকে গত ২৪ ঘণ্টায় করোনায় মৃত্যুবরণ করেছেন ৪০ জন, এ নিয়ে মোট ৪ হাজার ৯৭৯ জনের মৃত্যু হলো, অর্থাৎ মৃতের সংখ্যা পাঁচ হাজার ছুঁইছুঁই। ২৪ ঘণ্টায় সুস্থ হয়েছেন ২ হাজার ১৫২ জন, এখন পর্যন্ত সুস্থ হয়েছেন ২ লাখ ৫৮ হাজার ৭১৭ জন। গতকাল সোমবার স্বাস্থ্য অধিদফতরের অতিরিক্ত মহাপরিচালক অধ্যাপক ডা. নাসিমা সুলতানা স্বাক্ষরিত করোনা-বিষয়ক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে সর্বশেষ এসব তথ্য জানানো হয়েছে। বিজ্ঞপ্তিতে জানানো হয়, গত ২৪ ঘণ্টায় নমুনা সংগ্রহ করা হয়েছে ১২ হাজার ৯৬৭টি, নমুনা পরীক্ষা করা হয়েছে ১৩ হাজার ৫৩টি। এখন পর্যন্ত ১৮ লাখ ৩৪ হাজার ৩২৩টি নমুনা পরীক্ষা করা হয়েছে। নমুনা পরীক্ষার মধ্যে গত ২৪ ঘণ্টায় শনাক্ত হয়েছেন এক হাজার ৭০৫ জন। গত ২৪ ঘণ্টায় শনাক্তের হার ১৩ দশমিক ০৬ শতাংশ এবং এখন পর্যন্ত ১৯ দশমিক ১১ শতাংশ। ২৪ ঘণ্টায় শনাক্ত বিবেচনায় সুস্থতার হার ৭৩ দশমিক ৭৯ শতাংশ এবং মৃত্যুর হার এক দশমিক ৪১ শতাংশ। ২৪ ঘণ্টায় মৃত্যুবরণকারীদের মধ্যে ২৭ জন পুরুষ এবং ১৩ জন নারী। এখন পর্যন্ত পুরুষ ৩ হাজার ৮৭৩ জন এবং নারী মৃত্যুবরণ করেছেন এক হাজার ১০৬ জন। ২৪ ঘণ্টায় মারা যাওয়াদের বয়স বিশ্লেষণে দেখা যায়, ৬০ ঊর্ধ্ব ২০ জন, ৫১ থেকে ৬০ বছরের মধ্যে ১০ জন, ৪১ থেকে ৫০ বছরের মধ্যে ৪ জন, ৩১ থেকে ৪০ বছরের মধ্যে ৩ জন, ২১ থেকে ৩০ বছরের মধ্যে ২ জন এবং ০ থেকে ১০ বছরের মধ্যে একজন রয়েছেন। বিভাগ বিশ্লেষণে দেখা যায়, মৃত্যুবরণকারীদের মধ্যে ঢাকা বিভাগে ২৬ জন, চট্টগ্রাম বিভাগে ৯ জন, রংপুর বিভাগে ২ জন এবং রাজশাহী, খুলনা ও বরিশাল বিভাগে একজন করে রয়েছেন। ২৪ ঘণ্টায় হাসপাতালে মৃত্যুবরণ করেছেন ৩৭ জন, মৃত অবস্থায় হাসপাতালে আনা হয়েছে একজনকে এবং বাড়িতে মৃত্যুবরণ করেছেন দুই জন। সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে স্বাস্থ্য অধিদফতর আরও জানায়, গত ২৪ ঘণ্টায় আইসোলেশনে রাখা হয়েছে ৩ হাজার ৩২৯ জনকে। বর্তমানে আইসোলেশনে আছেন ১৬ হাজার ৪০২ জন। ২৪ ঘণ্টায় আইসোলেশন থেকে ছাড়া পেয়েছেন ৬৬৩ জন, এখন পর্যন্ত ছাড়া পেয়েছেন ৬২ হাজার ৮৯১ জন। এখন পর্যন্ত আইসোলেশন করা হয়েছে ৭৯ হাজার ২৯৩ জনকে। প্রাতিষ্ঠানিক ও হোম কোয়ারেন্টিন মিলে ২৪ ঘণ্টায় কোয়ারেন্টিন করা হয়েছে এক হাজার ২৫৮ জনকে। কোয়ারেন্টিন থেকে গত ২৪ ঘণ্টায় ছাড়া পেয়েছেন এক হাজার ৫৯২ জন, এখন পর্যন্ত ছাড়া পেয়েছেন ৪ লাখ ৭৮ হাজার ৭২ জন। এখন পর্যন্ত কোয়ারেন্টিন করা হয়েছে ৫ লাখ ২৪ হাজার ৯৭৬ জনকে। বর্তমানে কোয়ারেন্টিনে আছেন ৪৬ হাজার ৯০৪ জন।

অ্যান্টিজেন টেস্টের অনুমতি দিল স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়

ঢাকা অফিস ॥ কয়েক মাস আমলাতান্ত্রিক জটিলতার পরে অবশেষে কোভিড-১৯ এর জন্য সরকারি স্বাস্থ্যসেবা কেন্দ্রগুলোতে এন্টিজেন ভিত্তিক র‌্যাপিড টেস্টিংয়ের অনুমতি দিয়েছে সরকার। গতকাল সোমবার স্বাস্থ্য সেবা বিভাগের উপ-সচিব বিলকিস বেগম স্বাক্ষরিত এক আদেশে এ অনুমতি দেয়ার কথা বলা হয়েছে। তবে আদেশে ১৭ সেপ্টেম্বর তারিখ উল্লেখ রয়েছে। আদেশে বলা হয়, সারাদেশে এন্টিজেন টেস্টের চাহিদার পরিপ্রেক্ষিতে অতি স্বল্প সময়ে কোভিড-১৯ শনাক্তকরণের জন্য মহাপরিচালক স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের প্রস্তাবনা এবং বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার গাইডলাইন অনুসরণপূর্বক দেশের সকল সরকারি মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল, সরকারি পিসিআর ল্যাব এবং সকল স্বাস্থ্য ইনস্টিটিউটে এন্টিজেন ভিত্তিক টেস্ট চালুর অনুমতি নির্দেশক্রমে প্রদান করা হলো। আদেশে আরও বলা হয়, তবে শর্ত থাকে যে, যাচাই-বাছাইয়ের নিমিত্তে স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের প্রক্রিয়াধীন কোভিড-১৯ ল্যাব সম্প্রসারণ নীতিমালাটি চূড়ান্ত হলে তা যথাযথভাবে অনুসরণ করতে হবে। এর আগে গত ৫ জুলাই এন্টিজেন ভিত্তিক র‌্যাপিড টেস্টের অনুমোদন দেয়ার ব্যাপারে স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়কে অনুরোধ করে স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের মহাপরিচালক। এছাড়াও করোনাভাইরাস সম্পর্কিত জাতীয় পরামর্শক কমিটিও এই এন্টিজেন ভিত্তিক র‌্যাপিড টেস্টের অনুমোদন দেয়ার ব্যাপারে কয়েক বার সুপারিশ জানিয়েছিল। এদিকে, দেশে নতুন করে ১ হাজার ৭০৫ জন কোভিড-১৯ রোগী শনাক্ত হয়েছেন। যার ফলে মহামারি করোনাভাইরাসে মোট আক্রান্তের সংখ্যা পৌঁছেছে ৩ লাখ ৫০ হাজার ৬২১ জনে। এছাড়া, করোনায় গত ২৪ ঘণ্টায় দেশে আরও ৪০ জনের মৃত্যু হয়েছে। এ নিয়ে মোট মৃতের সংখ্যা বেড়ে ৪ হাজার ৯৭৯ জনে দাঁড়িয়েছে।

মিরপুরে স্বাস্থ্য সচেতনতা ও হাইজিন প্রমোশনমূলক প্রশিক্ষণ

আমলা অফিস ॥ কুষ্টিয়ার মিরপুরে প্রাথমিক বিদ্যালয়ে স্বাস্থ্য সচেতনতা ও হাইজিন প্রমোশনমূলক প্রশিক্ষণ কর্মসূচী উদ্বোধন করা হয়েছে। গতকাল সোমবার সকালে অডিটোরিয়ামে উপজেলা পরিষদের আয়োজনে ও উপজেলা জনস্বাস্থ্য, স্যানিটেশন ও বিশুদ্ধ পানি বিষয়ক কমিটির বাস্তবায়নে এবং উপজেলা পরিচালন ও উন্নয়ন প্রকল্প, স্থানীয় সরকার বিভাগ ও জাপান ইন্টারন্যাশনাল কোঅপারেশন এজেন্সীর (জাইকা) সহযোগিতায় ৪ দিনব্যাপী এ প্রশিক্ষণ কর্মসূচীর উদ্বোধন করা হয়। উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা লিংকন বিশ্বাসের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি ছিলেন উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান কামারুল আরেফিন। উপজেলা জনস্বাস্থ্য অধিদপ্তরের উপ-সহকারী প্রকৌশলী রিপন মিয়ার পরিচালনায় এতে বিশেষ অতিথি ছিলেন উপজেলা পরিষদের মহিলা ভাইস-চেয়ারম্যান মর্জিনা খাতুন, উপজেলা সহকারী কমিশনার (ভূমি) রকিবুল হাসান, উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের মেডিকেল অফিসার ডাঃ মামুন-অর-রশীদ, সহকারী উপজেলা প্রাথমিক শিক্ষা কর্মকর্তা রবিউল ইসলাম, উপজেলা ডেভেলপমেন্ট ফ্যাসিলিটেটর উত্তম কুমার বিশ^াস প্রমুখ।

 

শেখ হাসিনা মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয় আইন চূড়ান্ত অনুমোদন

ঢাকা অফিস ॥ ‘শেখ হাসিনা মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়, খুলনা, আইন, ২০২০’ এর খসড়া চূড়ান্ত অনুমোদন দিয়েছে মন্ত্রিসভা। গতকাল সোমবার প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সভাপতিত্বে ভার্চুয়াল মন্ত্রিসভা বৈঠকে এ অনুমোদন দেয়া হয়। প্রধানমন্ত্রী গণভবন থেকে এবং সংশ্লিষ্ট মন্ত্রীরা সচিবালয়ে মন্ত্রিপরিষদ বিভাগ থেকে বৈঠকে যুক্ত হন। বৈঠক শেষে সচিবালয়ে প্রেস ব্রিফিংয়ে মন্ত্রিপরিষদ সচিব খন্দকার আনোয়ারুল ইসলাম আইনটি অনুমোদনের কথা জানান। তিনি বলেন, এর আগেও (গত ১৩ জুলাই) এটি নীতিগত অনুমোদনের জন্য এসেছিল, তখন বিস্তারিত আলাপ-আলোচনা করে এটা অনুমোদন দেয়া হয়। লেজিসলেটিভ বিভাগের মতামত পাওয়ার পর স্বাস্থ্য শিক্ষা বিভাগ থেকে এটা চূড়ান্ত অনুমোদনের জন্য পাঠানো হয়েছে। মন্ত্রিপরিষদ সচিব বলেন, চিকিৎসা শিক্ষায় উচ্চশিক্ষিত বিশেষজ্ঞ গবেষক তৈরির লক্ষ্যে স্নাতকোত্তর পর্যায়ে চিকিৎসা শিক্ষা ও গবেষণা এবং স্নাতক পর্যায়ে চিকিৎসা শিক্ষা কার্যক্রম পরিচালনার জন্য মেডিকেল কলেজগুলোর শিক্ষার মান সংরক্ষণ ও উন্নয়নে খুলনা বিভাগে একটা মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিষ্ঠা করা প্রয়োজন। এটা প্রতিষ্ঠিত হলে খুলনা অঞ্চলের মধ্যে যত মেডিকেল কলেজ, নার্সিং ইনস্টিটিউট বা অন্য চিকিৎসা-সংক্রান্ত যেসব ইনস্টিটিউট থাকবে সবই এই খুলনা শেখ হাসিনা মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ের অধীনে চলে আসবেএর আগে রাজশাহী, চট্টগ্রাম ও সিলেট মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ের জন্য যে আইন প্রণয়ন করা হয়েছিল তার সঙ্গে সামঞ্জস্য রেখে একই রকম আইন করা হয়েছে বলেও জানান মন্ত্রিপরিষদ সচিব। খসড়া আইনে মোট ৫৫টি ধারা রয়েছে জানিয়ে খন্দকার আনোয়ারুল ইসলাম বলেন, এতে বিশ্ববিদ্যালয় স্থাপন, এখতিয়ার এবং ক্ষমতার বিষয়ে বর্ণনা করা হয়েছে। পরিদর্শন ও আর্থিক বিষয়ে বিশ্ববিদ্যালয় মঞ্জুরি কমিশনের ভূমিকা উল্লেখ রয়েছে। বিশ্ববিদ্যালয় উপাচার্য, উপ-উপাচার্য, কোষাধ্যক্ষ, রেজিস্ট্রার, পরীক্ষা নিয়ন্ত্রক ও কর্মচারীদের নিয়োগ প্রক্রিয়া, ক্ষমতা ও দায়িত্ব বর্ণনা করা হয়েছে আইনে। তিনি বলেন, বিশ্ববিদ্যালয় সিন্ডিকেট, অ্যাকাডেমিক কাউন্সিল, অনুষদ, বিভাগ, প্রয়োজনীয় কমিটি ও শৃঙ্খলা বোর্ড গঠন এবং এদের ক্ষমতা ও দায়িত্ব বর্ণনা করা হয়েছে খসড়া আইনে। রাষ্ট্রপতি থাকবেন এর চ্যান্সেলর। সমাবর্তন বা অন্য কোনো অনুষ্ঠান যেখানে রাষ্ট্রপতি থাকার কথা, সেখানে যদি উনি থাকতে না পারেন তবে উনি যাকে নির্বাচন করে দেবেন উনি তার পক্ষে সেখানে চিফ হিসেবে থাকবেন। এখন মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ের সংখ্যা পাঁচটি হচ্ছে বলেও জানান মন্ত্রিপরিষদ সচিব খন্দকার আনোয়ারুল ইসলাম। রহিত হচ্ছে চিকিৎসা ডিগ্রি আইন: মন্ত্রিসভা ‘চিকিৎসা ডিগ্রি (দ্য মেডিকেল ডিগ্রিস) (রহিতকরণ) আইন, ২০২০’ এর খসড়া নীতিগত অনুমোদন দিয়েছে। মন্ত্রিপরিষদ সচিব বলেন, মেডিকেল কলেজের ডিগ্রি ও মান সবকিছু নির্ধারিত হতো ‘দ্য মেডিকেল ডিগ্রি অ্যাক্ট, ১৯১৬’ দিয়ে। পরবর্তী সময়ে ২০১০ সালে বিএমডিসি বা ‘বাংলাদেশ মেডিকেল অ্যান্ড ডেন্টাল কাউন্সিল আইন, ২০১০’ করা হলো। ১৯১৬ সালের আইনের যত প্রভিশন ও মোডিফিকেশন প্রয়োজন ছিল সবই ২০১০-এর আইনে নিয়ে আসা হয়েছে। ফলে ‘দ্য মেডিকেল ডিগ্রিস অ্যাক্ট, ১৯১৬’ এর কোনো কার্যকারিতা নেই। সেজন্য এটা ওনারা (চিকিৎসা শিক্ষা বিভাগ) রহিত করার প্রস্তাব নিয়ে এসেছেন।

দৌলতপুরে পদ্মা নদীতে ভ্রাম্যমান আদালতের অভিযান

সরকারী নিষেধাজ্ঞা অমান্য করে অবৈধভাবে বালি উত্তোলনের দায়ে ১ লক্ষ ৫০ হাজার টাকা অর্থদন্ড

শরীফুল ইসলাম ॥ কুষ্টিয়ার দৌলতপুরে সরকারী নিষেধাজ্ঞা অম্যান্য করে পদ্মা নদীতে অবৈধভাবে বালি উত্তোলনের দায়ে তছিকুল ইসলাম নামে এক ব্যক্তির ১ লক্ষ ৫০ হাজার টাকা অর্থদন্ড করেছেন ভ্রাম্যমান আদালত। গতকাল সোমবার বিকেলে দৌলতপুর উপজেলার মরিচা ইউনিয়নের বৈরাগীরচর এলাকায় পদ্মা নদীতে অভিযান চালিয়ে বালি উত্তোলন করার সময় ওই ব্যক্তির এ অর্থদন্ড করা হয়। ভ্রাম্যমান আদালত সূত্র জানায়, সরকারী নিষেধাজ্ঞা অম্যান্য করে পদ্মা নদীতে অবৈধভাবে বালি উত্তোলন করা হচ্ছে এমন সংবাদ পেয়ে দৌলতপুর উপজেলা নির্বাহী অফিসার শারমিন আক্তার ও দৌলতপুর সহকারী কমিশনার (ভূমি) মো. আজগর আলীর নেতৃত্বে ভ্রাম্যমান আদালত পদ্মা নদীতে অভিযান চালায়। এসময় বৈরাগীরচর পূর্বপাড়া এলাকার আফজাল সরকারের ছেলে অবৈধভাবে বালি উত্তোলনকারী তছিকুল ইসলাম (৩২) কে আটক করে। পরে বালু মহল ও মাটি ব্যবস্থাপনা আইন ২০১০ এর ৪/১৫(১) ধারায় তাকে ১ লক্ষ ৫০ হাজার টাকা অর্থদন্ড করেন ভ্রাম্যমান আদালতের বিচারক ও নির্বাহী ম্যাজিষ্ট্রেট মো. আজগর আলী। এসময় তাকে সতর্ক করা হয়।

গ্রেফতারের ঘণ্টাখানেকের মধ্যেই ছেড়ে দেয়া হলো নূরকে

গ্রেফতারের ঘণ্টাখানেকের মধ্যেই ছেড়ে দেয়া হয়েছে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় কেন্দ্রীয় ছাত্র সংসদের সাবেক সহ-সভাপতি (ভিপি) নুরুল হক নুরকে। ডিবির যুগ্ম কমিশনার মাহবুব আলম জাগো নিউজকে বিষয়টি নিশ্চিত করেন। তিনি বলেন, ‘নুরকে ছেড়ে দেয়া হয়েছে’। এর আগে গতকাল সোমবার (২১ সেপ্টেম্বর) সন্ধ্যা সাড়ে ৮টার দিকে তাকে গ্রেফতার করা হয়। ধর্ষণের মামলার পাশাপাশি পুলিশের ওপর হামলার অভিযোগেও তাকে আটক করা হয়। এরপর তাকে নেয়া হয় ডিবি কার্যালয়ে। এর কিছুক্ষণ পরই তাকে ছেড়ে দেয়া হয়। নুরসহ ছয়জনের বিরুদ্ধে লালবাগ থানায় ঢাবি ছাত্রীর করা ধর্ষণের মামলার প্রতিবাদে রাজু ভাস্কর্যে সোমবার (২১ সেপ্টেম্বর) বিকেলে বিক্ষোভ করে বাংলাদেশ ছাত্র অধিকার পরিষদ। সেখানেই পুলিশের ওপর হামলা করা হয়েছে বলে অভিযোগ আনা হয়। এ বিষয়ে ডিএমপির মিডিয়া অ্যান্ড পাবলিক রিলেশন বিভাগের উপ-কমিশনার ওয়ালিদ হোসেন বলেন, ‘তাকে ডিবি কার্যালয়ে নেয়া হয়েছে। তারা যে সমাবেশ করছিল সে সমাবেশ থেকে পুলিশের ওপর হামলা করা হয়েছে। সে হামলার ঘটনায় একটা মামলা করা হবে। সে মামলায়ও তাকে গ্রেফতার দেখানো হবে।’ তিনি আরও বলেন, ‘তাকে মামলার বিষয়ে জিজ্ঞাসাবাদ করা হবে ডিবি কার্যালয়ে। এরপর তাকে আদালতে পাঠানোর বিষয়ে সিদ্ধান্ত নেয়া হবে।’ এর আগে রোববার (২০ সেপ্টেম্বর) রাতে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের (ঢাবি) এক শিক্ষার্থী লালবাগ থানায় এ মামলাটি করেন। মামলায় মোট ছয় জনকে আসামি করা হয়েছে। তাদের মধ্যে ধর্ষণে সহযোগী হিসেবে নুরুল হক নুরের নাম উল্লেখ করা হয়েছে। এদিকে এ মামলার তদন্ত প্রতিবেদন দাখিলের জন্য ৭ অক্টোবর দিন ধার্য করেছেন আদালত। সোমবার ঢাকা মহানগর হাকিম বেগম ইয়াসমিন আরা মামলার এজাহার গ্রহণ করে প্রতিবেদন দাখিলের জন্য এ দিন ধার্য করেন। মামলার প্রধান আসামি করা হয়েছে বাংলাদেশ ছাত্র অধিকার পরিষদের আহ্বায়ক হাসান আল মামুনকে। ধর্ষণের স্থান হিসেবে লালবাগ থানার নবাবগঞ্জ বড় মসজিদ রোডে হাসান আল মামুনের বাসার কথা উল্লেখ করা হয়েছে। বাদী শিক্ষার্থী ঢাবির বঙ্গমাতা শেখ ফজিলাতুন্নেছা মুজিব হলে থাকেন। নুর ও মামুন ছাড়া মামলার অন্য আসামিরা হলেন- বাংলাদেশ ছাত্র অধিকার পরিষদের যুগ্ম-আহ্বায়ক নাজমুল হাসান সোহাগ, বাংলাদেশ ছাত্র অধিকার পরিষদের যুগ্ম-আহ্বায়ক (২) মো. সাইফুল ইসলাম, ছাত্র অধিকার পরিষদের সহ-সভাপতি মো. নাজমুল হুদা এবং ঢাবি শিক্ষার্থী আবদুল্লাহ হিল বাকি।

গড়ে তুলেছে অবৈধ অর্থ সম্পদ

ইবি কর্মকর্তা রূপমের অপকর্ম বেড়েই চলেছে

নিজ সংবাদ ॥ কুষ্টিয়া শহরে দু’টি জমির প্লট ক্রয়, ক্যাম্পাসের মরা গাছ কাটার সুযোগে মোটাতাজা গাছ কেটে ফাড়াই করে আসবাবপত্র তৈরি এবং কাঠ বিক্রি, প্রয়োজনের অতিরিক্ত আনসার দেখিয়ে অর্থ উত্তোলণ, ক্যাম্পাসের বিভিন্ন দোকান থেকে ফ্রি খাওয়া, ক্যাম্পাস লেকের মাছ বিক্রি এবং আনসারদের খাবার থেকে প্রতিদিন ফ্রি খাওয়াসহ নানা অভিযোগ উঠেছে ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয়ের এক কর্মকর্তার বিরুদ্ধে। তার নাম মোঃ রোজদার আলী (রূপম)। তিনি বর্তমানে এস্টেট অফিসের অধীনে সিকিউরিটি প্রধান হিসেবে দায়িত্ব পালন করছে।

ক্যাম্পাস সূত্রে জানা যায়, মোঃ রোজদার আলী (রূপম) চাকুরীর শুরু থেকেই দুর্নীতি করে আসছে। তিনি একজন সুস্থসবল মানুষ হয়েও ২০১০ সালে মিথ্যার আশ্রয় নিয়ে শ্রবণ প্রতিবন্ধি কোটায়  অর্থ ও হিসাব বিভাগে হিসাব রক্ষণ কর্মকর্তা হিসেবে যোগদান করে। বর্তমানে তিনি সহকারী হিসাব পরিচালক হলেও তাকে এস্টেট অফিসের সিকিউরিটি প্রধানের দায়িত্ব দেয়া হয়েছে। চাকুরী পেয়েই তিনি তৎকালীন ভিসির পিএস সাইফুল আলমের সান্নিধ্য লাভ করে এবং পরবর্তীতে সাবেক প্রক্টর প্রফেসর ড. মাহবুবর রহমানের অতি আস্তাভাজন হয়ে উঠে। আর এ সুযোগে তিনি বিভিন্ন অপকর্মে জড়িয়ে পরে। দুর্নীতির মাধ্যমে গড়ে তুলেছে অবৈধ অর্থ সম্পদ। তিনি ক্যাম্পাস কোয়াটারে পরিবারসহ বসবাস করে। তার বিরুদ্ধে অভিযোগ উঠেছেÑ ক্যাম্পাসের মরা গাছ কাটার সুযোগে মোটাতাজা গাছ কেটে ফাড়াই করে আসবাব পত্র তৈরি এবং কাঠ বিক্রি, প্রয়োজনের অতিরিক্ত আনসার  দেখিয়ে অর্থ উত্তোলণ, ক্যাম্পাসের বিভিন্ন দোকান থেকে ফ্রি খাওয়া,  ক্যাম্পাস লেকের মাছ বিক্রি এবং আনসারদের খাবার থেকে প্রতিদিন ফ্রি খাওয়াসহ নানা অভিযোগ। ইতোমধ্যে তার গ্রামের বাড়ি পাকাকরণসহ কুষ্টিয়া শহরে দু’টি জমির প্লট ক্রয় করেছে এবং পরিবারের ব্যবহারে জন্য তৈরী করেছে মূল্যবান আসবাব পত্র।

অপর সূত্রে জানাযায়, ইবির বিভিন্ন অফিস ও শ্রেণিকক্ষে আসবাব পত্র ও বেঞ্চ তৈরী এবং পরবর্তীতে ক্যাম্পাস সৌন্দর্য বর্ধনের অজুহাতে দীর্ঘদিন ধরে এস্টেট অফিসের মাধ্যমে মরা গাছ কাটার নামে অসংখ্য মোটাতাজা গাছ কাটা চলছে। আর এ কাজের জন্য সাবেক প্রক্টর ড. মাহবুব এবং এস্টেট অফিসের প্রধান সাইফুল আলমের নেতৃত্বে কিছু অসাধু শিক্ষক-কর্মকর্তাদের সমন্বয়ে একটি চক্র গড়ে উঠে।  সে চক্রের একজন সদস্য রূপম। তাকে গাছ ফাড়ায় করে কাঠ তৈরীর দায়িত্ব দেয়া হয়। রূপম সেই চক্রের যোগসাজসে কাটা গাছ ফাড়াইয়ের জন্য কুষ্টিয়া বটতৈল, বিত্তিপাড়া, হরিনারায়নপুরসহ বিভিন্ন স’মিলে নিয়ে আসে। সেখান গাছগুলো ফাড়াই শেষে নামমাত্র কিছু কাঠ ক্যাম্পাসে নিয়ে যায় আর বাকী কাঠ সেখানে এবং ক্যাম্পাস গেটের সামনে জনৈক এক কাঠ মিস্ত্রির নিকট বিক্রি করে। এ চক্রটি দীর্ঘদিন ধরে ক্যাম্পাসে এ ধরনের কাজ করে আসছে। শোনাযায় রূপম এখান থেকে লাখ লাখ টাকা উপার্জন করেছে। তার চাকুরীর শুরু থেকে আজ পর্যন্ত সকল কর্মকান্ডের তদন্ত করলে বেরিয়ে আসবে সকল অপকর্ম এবং অবৈধ অর্থ উপার্জনের চিত্র।

এ বিষয়ে নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক এক কর্মকর্তা বলেন, আমি ও রূপম এক সাথেই চাকুরী পেয়েছি। যে বেতন পাই, তাতে সংসার চালাতে আমার হিমসিম খেতে হয়।  লোন গ্রহণ ছাড়া কোন কিছুই করতে পারি না। কিন্তু রুপম মনে হয় আলাদিনের চেরাগ পয়েছে। দিন দিন অর্থ সম্পদের পাহাড় গড়ে তুলছে। তার অপকর্ম বেড়েই চলেছে। তিনি বলেন, রূপম একজন দুর্নীতিগ্রস্থ কর্মকর্তা। তার কর্মকান্ডে বিশ্ববিদ্যালয়ের ভাবমুর্তি নষ্ট হচ্ছে। অতিদ্রুত তার বিচার হওয়া প্রয়োজন। এ বিষয়ে রূপমের সাথে যোগাযোগ করেও তাকে পাওয়া যায়নি।

‘শেখ মুজিব: এ নেশান’স ফাদার’ বইয়ের মোড়ক উন্মোচন করেছেন প্রধানমন্ত্রী

ঢাকা অফিস ॥ ‘শেখ মুজিব: এ নেশান’স ফাদার’ শীর্ষক একটি বইয়ের মোড়ক উন্মোচন করেছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। গতকাল সোমবার সকালে মন্ত্রিসভার সাপ্তাহিক বৈঠকের শুরুতে প্রধানমন্ত্রী তাঁর সরকারি বাসভবন গণভবনে বইটির মোড়ক উন্মোচন করেন। গণভবন থেকে ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে প্রধানমন্ত্রী মন্ত্রিপরিষদ বিভাগ অনুষ্ঠিত বৈঠকে যোগ দেন। প্রবাসী কল্যাণ ও বৈদেশিক কর্মসংস্থান মন্ত্রণালয় জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জন্মশতবার্ষিকী উপলক্ষে সচিত্র বইটি প্রকাশ করেছে। বইটির উপদেষ্টা সম্পাদক ও প্রবাসী কল্যাণ ও বৈদেশিক কর্মসংস্থান মন্ত্রী ইমরান আহমেদ এবং বইটির সম্পাদক, বদরুন্নেসা আহমেদ ফাউন্ডেশনের চেয়ারম্যান এবং ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের সাবেক উপ-উপাচার্য ড. নাসরিন আহমেদ এ সময় উপস্থিত ছিলেন।

দেশে করোনা সংক্রমণের দ্বিতীয় ঢেউয়ের শঙ্কা

ঢাকা অফিস ॥ পশ্চিমা দেশগুলোর মতো বাংলাদেশেও কোভিড-১৯ সংক্রমণের দ্বিতীয় ঢেউ লাগার আশঙ্কা করছেন বিশেষজ্ঞরা। এজন্য তারা কঠোরভাবে স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলার ওপর জোর দিয়েছেন। কোভিড-১৯ জাতীয় কারিগরি পরামর্শক কমিটির সভাশেষে গত রোববার রাতে পাঠানো এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে এই শঙ্কার কথা জানানো হয়েছে। কমিটির চেয়ারপারসন অধ্যাপক ডা. মোহাম্মদ শহিদুল্লাহর সভাপতিত্বে এ সভা অনুষ্ঠিত হয়। জাতীয় পরামশর্ক কমিটির সদস্যরা স্বাস্থ্য অধিদফতরের মহাপরিচালক অধ্যাপক ডা. এ বি এম খুরশীদ আলমের সঙ্গে বিভিন্ন বিষয় নিয়ে আলোচনা করেন। আলোচনা শেষে নিম্নলিখিত বিষয়ে সিদ্ধান্ত গৃহীত হয়- ১. কোভিড-১৯ সংক্রমণের প্রাথমিক পর্যায়ে চ্যালেঞ্জ থাকলেও বর্তমানে পরীক্ষার সক্ষমতা বৃদ্ধি, হাসপাতালের সেবার পরিধি ও মান উন্নয়ন করা হয়েছে। সরকারের ও বিভিন্ন সংস্থার পদক্ষেপের কারণেই কোভিড-১৯ সংক্রমণ নিয়ন্ত্রণে রাখা সম্ভব হয়েছে। যেসব দিকে এখনও উন্নয়ন প্রয়োজন সেসব দিকের ঘাটতিও চিহ্নিত হয়েছে। এখন ঘাটতি পূরণ করে পূর্ণ প্রস্তুতি নিতে হবে। ২. বিভিন্ন দেশে দ্বিতীয় দফায় সংক্রমণও দেখা যাচ্ছে। আমাদের পার্শ্ববর্তী দেশ ভারতে সংক্রমণের মাত্রা অনেক বেশি। এ ছাড়া বিভিন্ন দেশের সাথে যোগাযোগ উন্মুক্ত হচ্ছে এবং হতে থাকবে। স্বাস্থ্যবিধি মানার বিষয়েও জনসাধারণের মধ্যে এক ধরনের শৈথিল্য লক্ষ্য করা যাচ্ছে। এই সবগুলোর কারণে আমাদের দেশেও পুনরায় সংক্রমণের আশঙ্কা রয়েছে। দ্বিতীয় দফার সংক্রমণ প্রতিরোধের পাশাপাশি স্বাস্থ্যসেবা নিশ্চিত করতে পূর্ণ প্রস্তুতি নিয়ে রাখতে হবে। দ্বিতীয় দফার সংক্রমণ দ্রুত নির্ণয়ের লক্ষ্যে সতর্ক থাকতে হবে। দ্বিতীয় দফার সংক্রমণ প্রতিরোধ ও নিয়ন্ত্রণে এখনই করণীয় বিষয়ে রোডম্যাপ প্রস্তুত করে সেই মোতাবেক পূর্ণ প্রস্তুতি গ্রহণ করতে হবে। ৩. গত কয়েক সপ্তাহ ধরে দেশে করোনা সংক্রমণের হার নিম্নমুখী, যদিও এই হার স্বস্তিকর মাত্রায় এখনও পৌঁছায়নি। সম্প্রতি কিছুকিছু হাসপাতালের শয্যা খালি থাকছে। আবার অন্যদিকে অন্যান্য রোগের রোগীর সংখ্যা প্রতিদিন বৃদ্ধি পাচ্ছে। কোনো কোনো হাসপাতালে রোগীর সংখ্যা একেবারেই কম। অন্যদিকে সেই সব হাসপাতালে অনেক সংখ্যায় চিকিৎসকসহ অনেক স্বাস্থ্যকর্মী যুক্ত রয়েছেন। হাসপাতাল পরিচালনায় অনেক অর্থ ব্যয় হচ্ছে। অন্যান্য রোগের রোগীদের চিকিৎসাসেবা নিশ্চিত করতে কোভিড-১৯ হাসপাতালের অব্যবহৃত শয্যা সংখ্যা সংকোচনের সিদ্ধান্ত নেয়া হয়েছে। জাতীয় পরামর্শক কমিটি মনে করে, এখনও আইসোলেশন কেন্দ্রের প্রয়োজন রয়েছে। তাই সংকোচন করা হলেও পুরোপুরি বন্ধ না করে ভবিষ্যতে প্রয়োজন হলে যাতে পুনরায় ব্যবহার করা যায় সেই প্রস্তুতি নিয়ে রাখতে হবে। ৪. কোভিড-১৯ চিকিৎসায় এক্স-রে ও রক্তের কিছু পরীক্ষার ভূমিকা রয়েছে। শহরের হাসপাতালগুলোতে এই ব্যবস্থা থাকলেও জেলা পর্যায়ের হাসপাতালে তা বৃদ্ধি করা প্রয়োজন। দ্বিতীয় দফার সংক্রমণ দ্রুত নির্ণয়ের লক্ষ্যে বর্ধিত হারে টেস্ট করা প্রয়োজন। জাতীয় পরামর্শক কমিটি স্বাস্থ্য অধিদফতরের ল্যাবরেটরি কমিটির সাথে যৌথভাবে কোভিড-১৯ টেস্টের নীতিমালার খসড়া চূড়ান্ত করেছে। করোনার নমুনা পরীক্ষার জন্য জনগণকে উদ্বুদ্ধ করার জন্য পদক্ষেপ নিতে হবে। সংক্রমণ ছড়িয়ে পড়া প্রতিরোধ করতে সংক্রমিত ব্যক্তিকে দ্রুত চিহ্নিত করে আইসোলেট করতে হবে। ৫. সভায় করোনার ভ্যাকসিন বিষয়ে স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয় ও স্বাস্থ্য অধিদফতরের গৃহীত পদক্ষেপ নিয়ে অলোচনা করা হয় এবং সন্তোষ প্রকাশ করা হয়। এ ব্যাপারে ইতোমধ্যে জাতীয় পরামর্শক কমিটির দেয়া পরামর্শ বাস্তবায়ন করার জন্য সুপারিশ করা হয়। করোনার ভ্যাকসিনের টেকনোলজি নিয়ে এই দেশেই উৎপাদন করার সরকারের পরিকল্পনার প্রশংসা করা হয়। ৬. যদিও টিকা উৎপাদনে সারাবিশ্ব সক্রিয়, তারপরও কার্যকর টিকার প্রাপ্যতা সময়সাপেক্ষ এবং সময়সীমা এখনও অনিশ্চিত। যেহেতু লকডাউন জীবিকার স্বার্থে সম্ভপর নয়, তাই এই মুহূর্তে সঠিকভাবে মাস্ক পরা, সাবান দিয়ে বারবার হাত ধোয়া এবং সামাজিক দূরত্ব বজায় চলাসহ সব স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলা করোনা প্রতিরোধের একমাত্র উপায়। এ ব্যাপারে জনসাধারণকে আরও সচেতন ও সক্রিয় অংশগ্রহণ নিশ্চিতের জন্য সচেতনতামূলক কার্যক্রম জোরদার করা প্রয়োজন। ৭. বিভিন্ন দেশ থেকে যাত্রীরা দেশে আসছে। এ বিষয়ে ভ্রমণ সংক্রান্ত পরামর্শ/নিয়ম জারি করা প্রয়োজন। সংক্রমণ প্রতিরোধে পয়েন্ট অব এন্ট্রিতে প্রতিরোধ কার্যক্রম জোরদার করা প্রয়োজন। বিদেশ থেকে আগতদের স্ক্রিনিং, কোয়ারেন্টাইন নিশ্চিত করা প্রয়োজন। প্রাতিষ্ঠানিক ও হোম কোয়ারেন্টাইন নিশ্চিতের জন্য ব্যবস্থা গ্রহণ করতে হবে। এ ব্যাপারে করোনা ট্রেসার বিডি অ্যাপটি ব্যবহার করা যেতে পারে। ৮. সভায় হাসপাতালে দায়িত্ব পালনরত স্বাস্থ্যকর্মীদের কোয়ারেন্টাইনের ব্যবস্থা নিয়ে আবারও আলোচনা হয়। স্বাস্থ্যকর্মীদের সাথে সাথে তাদের পরিবার পরিজনরাও কোভিড-১৯ সংক্রমণের ঝুঁকিতে পড়ে। চিকিৎসকদের মতামত থেকে প্রতীয়মান হয় যে, হাসপাতালে দায়িত্ব পালনের পর স্বাস্থ্যকর্মীদের কোয়ারেন্টাইনের জন্য নিরাপদ আবাসনের প্রয়োজন। ৯. কার্যকর রেফারেল ব্যবস্থার জন্য আন্তঃহাসপাতাল নেটওয়ার্ক স্থাপন করার বিষয়ে ইতোপূর্বে পরামর্শ দেয়া হয়েছে। সভায় জানানো হয় সিলেট এম এ জি ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে প্রযুক্তিভিত্তিক নেটওয়ার্ক স্থাপন করার পরীক্ষামূলক ব্যবস্থা নেয়া হয়েছে। এটি সফল হলে পরবর্তীতে অন্যান্য হাসপাতালেও সম্প্রসারণ করা হবে।

খালেদা জিয়ার ৪ মামলার স্থগিতাদেশ আপিলেও বহাল

ঢাকা অফিস ॥ সাবেক প্রধানমন্ত্রী ও বিএনপি চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়ার বিরুদ্ধে নাশকতার অভিযোগে করা আরো চার মামলার কার্যক্রমের ওপর হাইকোর্টের দেয়া স্থগিতাদেশ বহাল রেখেছেন আপিল বিভাগ। মামলাগুলো সচল চেয়ে রাষ্ট্রপক্ষের আবেদনের শুনানি শেষে গতকাল রোববার বিচারপতি ইমান আলীর নেতৃত্বাধীন তিন সদস্যের আপিল বিভাগ এ আদেশ দেন। একইসঙ্গে অগ্রাধিকার ভিত্তিতে হাইকোর্টের রুল শুনানি করতে বলা হয়েছে। আদালতে রাষ্ট্রপক্ষে শুনানিতে ছিলেন অতিরিক্ত অ্যাটর্নি জেনারেল মমতাজ উদ্দিন ফকির। আর খালেদা জিয়ার পক্ষে শুনানিতে ছিলেন ব্যারিস্টার মাহবুব উদ্দিন খোকন। ব্যারিস্টার মাহবুব উদ্দিন খোকন নয়া দিগন্তকে বলেন, আপিল বিভাগ খালেদা জিয়ার বিরুদ্ধে নাশকতার অভিযোগে করা চারটি মামলায় হাইকোর্টের স্থগিতাদেশ বহাল রেখেছেন। তিনি বলেন, আমরা আদালতে বলেছি ঘটনার সময় বেগম খালেদা জিয়া বিএনপির গুলশান কার্যালয়ে অবরুদ্ধ অবস্থায় ছিলেন। তাকে এসব মামলার হুকুমের আসামি করা হয়েছে। অথচ তিনি নেতাকর্মীদের নাশকতা পরিহার করে শান্তিপূর্ণভাবে কর্মসূচি পালন করতে বলেছেন। তার বিরুদ্ধে এসব মামলা চলতে পারে না। হাইকোর্ট যথার্থভাবে এসব মামলার কার্যক্রমে ওপর স্থগিত আদেশ দিয়েছেন যা বহাল থাকায় উচিত। খালেদা জিয়ার আইনজীবী ও বিএনপির আইন সম্পাদক ব্যারিস্টার কায়সার কামাল নয়া দিগন্তকে বলেন, বেগম খালেদা জিয়ার বিরুদ্ধে নাশকতার অভিযোগে করা চারটি মামলায় হাইকোর্টের স্থগিতাদেশ বহাল রেখেছেন। এ চারটি মামলা হল; রাজধানীর দারুস সালাম থানায় নাশকতার অভিযোগে তিনটি এবং কুমিল্লায় করা নাশকতার অপর একটি মামলা। তিনি বলেন, কুমিল্লায় করা নাশকতার মামলায় স্থগিতাদেশ বহাল রাখার পাশাপাশি জামিনও বহাল রেখেছেন আদালত। তিনি আরো বলেন, এ চার মামলাসহ খালেদা জিয়ার বিরুদ্ধে থাকা মামলাগুলোর মধ্যে মোট ১২ মামলার কার্যক্রমের ওপর স্থগিতাদেশ বহাল রাখলেন আপিল বিভাগ। এর আগে ২০১৪ সালের নির্বাচনের আগে ও পরে গাড়ি ভাঙচুরসহ অগ্নিসংযোগের অভিযোগে খালেদা জিয়াকে হুকুমের আসামি করে নাশকতার মামলাগুলো দায়ের করা হয়। রাজধানীর দারুস সালাম থানায় নাশকতার অভিযোগে তিনটি এবং কুমিল্লায় নাশকতার অভিযোগে করা অপর একটি মামলা দায়ের করা হয়। এসব মামলা স্থগিত চেয়ে খালেদা জিয়ার পক্ষে হাইকোর্টে আবেদন জানানো হলে তা মঞ্জুর করা হয়। একইসঙ্গে মামলার স্থগিতের বিষয়ে রুল জারি করেন হাইকোর্ট। পরে হাইকোর্টের আদেশের বিরুদ্ধে আপিল বিভাগে আবেদন জানায় রাষ্ট্রপক্ষের আইনজীবীরা।

মিরপুরে সম্মিলিত নাগরিক সমাজের জরুরী সভা

আমলা অফিস ॥ কুষ্টিয়ার মিরপুরে সম্মিলিত নাগরিক সমাজের এক জরুরী সভা গতকাল রোববার সকালে মিরপুর মুক্তিযোদ্ধা কমপ্লেক্স ভবনে অনুষ্ঠিত হয়েছে। উপজেলা সম্মিলিত নাগরিক সমাজের সভাপতি বীর মুক্তিযোদ্ধা আফতাব উদ্দিন খানের সভাপতিত্বে ও সাধারণ সম্পাদক বীরমুক্তিযোদ্ধা নজরুল করিমের পরিচালনায় এ সময়ে বক্তব্য রাখেন যুগ্ম-সাধারণ সম্পাদক আলহাজ্ব মহাম্মদ আলী জোয়ার্দ্দার, বাবলু রঞ্জন বিশ্বাস, অর্থ-সম্পাদক আব্দুল্লাহ আল মতিন লোটাস, প্রচার সম্পাদক হুমায়ূন কবির হিমু, দপ্তর সম্পাদক রাশেদুজ্জামান রিমন, সহ-প্রচার সম্পাদক সুমন মাহমুদ, সদস্য বীরমুক্তিযোদ্ধা আমজাদ হোসেন, বীরমুক্তিযোদ্ধা মোশারফ হোসেন, বীরমুক্তিযোদ্ধা কুতুব উদ্দিন,  প্রেসক্লাবের সহ-সভাপতি কাঞ্চন কুমার হালদার, উপজেলা শিল্পকলা একাডেমির সাধারণ সম্পাদক আসাদুজ্জামান মিঠু, সাংবাদিক আছাদুর রহমান বাবু, মজিদ জোয়ার্দ্দার, মিলন উল্লাহ, মারফত আফ্রিদী, আলম মন্ডল, সাগরখালী আদর্শ ডিগ্রী কলেজের অধ্যক্ষ রবিউল ইসলাম, মিরপুর নাজমুল উলুম ফাযিল মাদ্রাসার অধ্যক্ষ মাওঃ ছালেহ উদ্দিন, বাংলাদেশ সুইমিং ফেডারেশনের সাবেক যুগ্ম-সম্পাদক আমিরুল ইসলাম, আলো সংস্থার নির্বাহী পরিচালক ফিরোজ আহাম্মেদ, আশরাফুল আলম হীরা, মামুনার রশিদ, রফিকুল ইসলাম জোয়ার্দ্দার, ইসরাইল হোসেন সান্টু, শরিফুল ইসলাম, মিজানুর রহমান, হাফিজুর রহমান প্রমুখ। উল্লেখ্য বন্ধ ঘোষিত মিরপুর রেলওয়ে ষ্টেশন পুনরায় চালু হওয়ার প্রেক্ষিতে সুন্দরবন, সাগরদাড়ি, টুঙ্গিপাড়া, রূপসা আন্তঃনগর এক্সপ্রেস ষ্টপেজের দাবীতে এ জরুরী সভা অনুষ্ঠিত হয়। সভায় ষ্টেশনটি চালু হওয়ায় উপজেলার সর্বস্তরের জনগণ ও বিভিন্ন পর্যায়ের জনপ্রতিনিধির প্রতি কৃতজ্ঞতা জ্ঞাপন করা হয়। সভায় সর্বসম্মতিক্রমে ১৫ সদস্য বিশিষ্ট সম্মিলিত নাগরিক সমাজের নির্বাহী কমিটি গঠন করা হয়। এছাড়াও নতুন সদস্য অর্ন্তভুক্ত ও ষ্টেশনের রাস্তা সংস্কারসহ বিভিন্ন বিষয়ে আলোচনা করা হয়। নিজস্ব অর্থায়নে ষ্টেশনের বিশ্রামাগার ও শৌচাগার সংস্কার এবং সৌর বাতি নির্মাণের জন্য সংরক্ষিত বৃহত্তর কুষ্টিয়া আসনের সংসদ সদস্য সৈয়দা রাশিদা বেগমকে ধন্যবাদ জ্ঞাপন করা হয়। ষ্টেশনের বিশ্রামাগারের আসবাবপত্র ক্রয়ের জন্য কমিটির যুগ্ম-সাধারণ সম্পাদক প্রেসক্লাবের সভাপতি আলহাজ্ব মহাম্মদ আলী জোয়ার্দ্দার তাৎক্ষনিক ২০ হাজার টাকা অনুদান এবং উপস্থিত সদস্যরা আর্থিক সহায়তা প্রদান করেন।

টানা লোকসান এড়াতে বন্ধ করে দেয়া হতে পারে দেশের চিনিকলগুলো

ঢাকা অফিস ॥ দেশের সরকারি চিনিকলগুলো বছরের পর বছর ধরে বিপুল পরিমাণ লোকসান গুণে যাচ্ছে। ট্যারিফ কমিশনের এক সমীক্ষা অনুযায়ী প্রতি কেজি চিনি উৎপাদনে সরকারি চিনিকলগুলোর খরচ হয় ৮৮ টাকা। আর তা বাজারে বিক্রি হচ্ছে ৬০ টাকায়। ফলে আপাতত চিনি বিক্রি করে লাভের আশা নেই। বর্তমানে ১৫টি সরকারি চিনিকলে লোকসানের পরিমাণ ৫ হাজার কোটি টাকা ছাড়িয়ে গেছে। এমন পরিস্থিতিতে লোকসানের দায় এড়াতে চিনিকলগুলো বন্ধের কথা ভাবা হচ্ছে। বাংলাদেশ খাদ্য ও চিনি শিল্প করপোরেশন সংশ্লিষ্ট সূত্রে এসব তথ্য জানা যায়। সংশ্লিষ্ট সূত্র মতে, বাংলাদেশ খাদ্য ও চিনি শিল্প করপোরেশন ইতিমধ্যে চিঠি পাঠিয়ে দেশের চিনিকলগুলো স্থাবর-অস্থাবর সম্পত্তি, লাভ-লোকসান ও শ্রমিক-কর্মচারীদের দেনা-পাওনার হিসাব চেয়েছে। ফলে চাকরি হারানোর দুশ্চিন্তায় পড়েছে শ্রমিক ও কর্মচারীরা। খাদ্য ও চিনি শিল্প করপোরেশন ১০ সেপ্টেম্বর এক অফিস আদেশে দেশের সব চিনিকলের ১১টি বিষয়ের হিসাব চেয়েছে এবং ১৬ সেপ্টেম্বরের মধ্যে ওসব তথ্য করপোরেশনে পাঠাতে বলা হয়েছে। সেজন্য একটি কমিটিও গঠন করা হয়েছে। বর্তমানে চিনিকলগুলোতে অন্তত তিন মাস ধরে বেতন নেই। বিগত ২০১৫ সালের মজুরি কাঠামো অনুযায়ী মিল সংশ্লিষ্টদের বিপুল টাকা এরিয়া বিল বকেয়া পড়েছে। আর এখন মিল বন্ধের আশঙ্কা শ্রমিক-কর্মচারীদের ভাবিয়ে তুলেছে। সূত্র জানায়, চিনিকলগুলো বন্ধের ইঙ্গিত পেয়েই সারা দেশের শ্রমিক-কর্মচারী নেতারা ঢাকায় চিনি ও খাদ্য শিল্প করপোরেশনের চেয়ারম্যানের সঙ্গে বৈঠক করেছে। ওই বৈঠকে মিল বন্ধেরই ইঙ্গিত দেয়া হয়েছে। ফলে শ্রমিক ও কর্মচারীরা দিশাহারা হয়ে পড়েছে। ইতিমধ্যে চিনিকলগুলো চিঠিতে চাওয়া তথ্যগুলো পাঠানোর প্রস্তুতি নিয়েছে। তবে মিল বন্ধের সিদ্ধান্ত এখনো চূড়ান্ত হয়নি। প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে একটি বৈঠকের কথা রয়েছে। ওই বৈঠকে কী সিদ্ধান্ত হয়, সেজন্য অপেক্ষা করতে হবে। এ প্রসঙ্গে বাংলাদেশ চিনি ও খাদ্য শিল্প করপোরেশনের চিফ অব পার্সোনেল রফিকুল ইসলাম জানান, চিনিকলগুলো এখনো বন্ধের সিদ্ধান্ত হয়নি। তবে সেদিকে যাচ্ছে বলে মনে হচ্ছে। বিজেএমসির পাটকলগুলোর মতো গোল্ডেন হ্যান্ডশেকে গেলে কী পরিমাণ বাজেট প্রয়োজন হতে পারে, তা জানতেই চিনিকলগুলোর কাছে তথ্যগুলো চাওয়া হয়েছে। ধারণা করা হচ্ছে সরকার যে কোনো সময় এসব তথ্য কর্পোরেশনের কাছে চাইতে পারে।

বিএনপির আন্দোলনের গর্জনই শুধু শোনা যায়, বর্ষণ দেখা যায় না – কাদের

ঢাকা অফিস ॥ আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক এবং সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের বলেছেন, বিএনপির আন্দোলনের হাক ডাক আর তর্জন গর্জনই শুধু শোনা যায় কিন্তু বর্ষণ দেখা যায় না, যাবেও না। গতকাল রোববার সকালে বাংলাদেশ রোড ট্রান্সপোর্ট অথরিটি বিআরটিএ আয়োজিত বিশেষ সেবা সপ্তাহের উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে তিনি ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে যুক্ত হয়ে একথা বলেন। বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর আন্দোলন সংগ্রামের মাধ্যমে সরকার হঠানোর ঘোষণা প্রসঙ্গে ওবায়দুল কাদের বলেন, বিএনপি নেতারা কর্মসূচি আর আন্দোলনের ঘোষণা দিয়ে শীতাতপ নিয়ন্ত্রিত কক্ষে বসে থাকে। তাদের হাক ডাক অনেক শুনেছে জনগণ। তিনি বলেন, তারা আন্দোলন করে দলীয় অফিসের সামনে নিজ দলের নেতাকর্মীদের মাথা ফাটায়। আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক বলেন, সরকারের বিরুদ্ধে বিএনপি প্রতি বছর ঈদের পরে আন্দোলন শুরুর ঘোষণা দেয় কিন্তু জনগণ কত ঈদ যে পার করলো, আন্দোলন আর দেখে না, রাজপথ শূণ্যই থাকে। বিএনপির আন্দোলনের দ্বার রুদ্ধ করে তারা প্রেস ব্রিফিং এর মধ্যেই সীমাবদ্ধ থাকে। তিনি বলেন, বিএনপির আন্দোলন পারস্পরিক অবিশ্বাস, কলহ, মিথ্যাচার আর নেতিবাচক রাজনীতির চক্রে আবদ্ধ, তাদের আন্দোলনের ডাক এখন মিথ্যাবাদী রাখালের গল্পের মতো। ওবায়দুল কাদের বলেন, আন্দোলনের মধ্য দিয়ে সরকারকে সরাতে না পারলে স্বাধীনতা রক্ষা করা যাবে না, বিএনপি মহাসচিবের এমন কথা শুনলে জনগণ এখন হাসে, তারা কাদের নিয়ে আন্দোলন করবে? এদেশের স্বাধীনতা এসেছে আওয়ামী লীগের হাত ধরে, দেশের প্রতিটি অর্জনের সাথে মিশে আছে আওয়ামী লীগ। সেতুমন্ত্রী বলেন, সরকার সেবা সহজীকরণে এবং গ্রাহকদের সুবিধার্থে দেশের যে কোন সার্কেল অফিস হতে যানবাহনের ফিটনেস সনদ গ্রহণের সুযোগ সৃষ্টি করেছে। তিনি বলেন, বিআরটিএকে সত্যিকার অর্থে সেবামুখী প্রতিষ্ঠান গড়ে তুলতে হবে। এসময় উপস্থিত ছিলেন সড়ক ও মহাসড়ক বিভাগের সচিব মো. নজরুল ইসলাম, বিআরটিএ’র চেয়ারম্যান নূর মোহাম্মদ মজুমদারসহ মন্ত্রণালয়ের কর্মকর্তারা।

কুষ্টিয়ায় র‌্যাবের অভিযানে ২ ভূয়া এনএসআই গ্রেফতার 

নিজ সংবাদ ॥ র‌্যাব-১২, সিপিসি-১, কুষ্টিয়া ক্যাম্পের একটি চৌকষ আভিযানিক দল গত ১৯ সেপ্টেম্বর বিকেল সাড়ে ৫টার সময় কুষ্টিয়া সদর থানাধীন ৯৫/৫ এমইউ ভূঁইয়া রোড কোটপাড়া জনৈক মোঃ আকতারুল হক পিতা-মৃত হাতেম আলী মিয়া এর ৪তলা বিল্ডিং এর সামনে পাকা রাস্তার উপর’’ একটি বিশেষ অভিযান পরিচালনা করে। উক্ত অভিযানে ভূয়া এনএসআই এর কার্ড-১টি, মোবাইল ফোন-৩টি, সীমকার্ড-৬টিসহ ২ জন তনুজা ইসলাম (২৭), স্বামী-মোঃ কাজী ইকরামুল হক, সাং-কাচের কোল ও মোঃ জাহাঙ্গীর আলম (২৯), পিতা-আঃ লতিফ, সাং-সিদ্ধি, উভয় থানা শৈলকুপা, জেলা-ঝিনাইদহদ্বয়’কে গ্রেফতার করা হয়। পরবর্তীতে উদ্ধারকৃত আলামতসহ ধৃত আসামীদ্বয়ের বিরুদ্ধে কুষ্টিয়া সদর থানায় সরকারী কর্মকর্তা ছদ্মবেশ ধারণ করার অপরাধে একটি প্রতারণার মামলা দায়ের করা হয়েছে এবং গ্রেফতারকৃতদের কুষ্টিয়া সদর থানায় সোপর্দ করা হয়েছে।

  প্রধানমন্ত্রীর ত্রাণ ও কল্যাণ ফান্ডে অনুদান গ্রহণকালে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা

শীতে করোনা পরিস্থিতি আরও খারাপ হতে পারে, প্রস্তুতি নিন

ঢাকা অফিস ॥ আসন্ন শীতকালে কোভিড-১৯ পরিস্থিতি আরো খারাপ হতে পারে উল্লেখ করে এই মুহূর্ত থেকেই তা মোকাবেলায় প্রস্তুতি গ্রহণ করতে সংশ্লিষ্ট সকলের প্রতি নির্দেশ দিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। গতকাল রোববার গণভবনে ৩৪টি বাণিজ্যিক ব্যাংকসহ বিভিন্ন সংগঠনের কাছ থেকে প্রধানমন্ত্রীর ত্রাণ ও কল্যাণ ফান্ডে অনুদান গ্রহণকালে ভিডিও কনফারেন্সের তিনি এ নির্দেশ দেন। প্রধানমন্ত্রী বলেন, শীতকাল আসন্ন। কোন কোন ক্ষেত্রে করোনা পরিস্থিতির আরও অবনতি ঘটতে পারে। আমাদেরকে এই মুহূর্ত থেকেই তা মোকাবেলার জন্য প্রস্তুতি নিতে হবে। প্রধানমন্ত্রীর পক্ষ থেকে তার মুখ্য সচিব ড. আহমদ কায়কাউস প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয় (পিএমও) প্রাঙ্গণে এই অনুদানের চেক গ্রহণ করেন। করোনা মোকাবেলায় জাতির সহায়তায় প্রধানমন্ত্রীর ত্রাণ ও কল্যাণ তহবিলে এই আর্থিক অনুদান দেয়ার জন্য শেখ হাসিনা সংগঠনগুলোর প্রতি কৃতজ্ঞতা জ্ঞাপন করেন। এ প্রসঙ্গে তিনি বলেন, সবাই এই পরিস্থিতিতে (করোনাকালে উদ্ভুত পরিস্থিতিতে) অত্যন্ত আন্তরিকতার সাথে কাজ করেছেন। আর এ জন্যই আমরা এই করোনা পরিস্থিতি মোকাবেলা করতে সক্ষম হয়েছি। কোভিড-১৯-এর অভিঘাত থেকে দেশের অর্থনীতিকে মুক্ত রাখতে প্রণোদনা প্যাকেজ ঘোষণাসহ সরকারের আন্তরিক প্রচেষ্টার কথা উল্লেখ করে প্রধানমন্ত্রী আরও বলেন, আমরা দেশের ব্যবসা-বাণিজ্য ও অর্থনীতিকে সচল রাখতে কার্যকরী পদক্ষেপ গ্রহণ করেছি। আমরা প্রণোদনা প্যাকেজ ঘোষণা করেছি এবং যেখানে যা প্রয়োজন তাই দিয়েছি। কারণ জনগণের সেবা করাই আমাদের প্রধান লক্ষ্য। দেশের যে কোন সংকটে বাংলাদেশ অ্যাসোসিয়েশন অব ব্যাংক (বিএবি) তাদের হাত বাড়িয়ে দেয়ায় প্রধানমন্ত্রী তাদের ধন্যবাদ জানান।

প্রধানমন্ত্রী’র ত্রাণ ও কল্যাণ তহবিলে বাংলাদেশ বিচার বিভাগীয় কর্মচারী এসোসিয়েশনের অনুদানের চেক হস্তান্তর

বিশ্বব্যাপী মহামারী করোনা ভাইরাসের প্রাদুর্ভাবে বাংলাদেশেও এর ব্যাপক প্রভাব পড়েছে। করোনার প্রাদুর্ভাব মোকাবেলায় বাংলাদেশ সরকার অনেক পদক্ষেপ গ্রহণ করেছে। মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর ত্রাণ ও কল্যাণ তহবিল হতে বাংলাদেশ সরকার দরিদ্র মানুষগুলোর মাঝে বিভিন্ন প্রকারের ত্রাণ সামগ্রী বিতরণ করছে। দরিদ্র মানুষগুলোকে আর্থিকভাবে সহায়তা করার নিমিত্তে মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর ত্রাণ ও কল্যাণ তহবিলে অধঃস্তন আদালতের কর্মচারীদের সংগঠন বাংলাদেশ বিচার বিভাগীয় কর্মচারী এসোসিয়েশন ৪০ লক্ষ টাকার অনুদানের চেক প্রদান করে। অনুদানের চেক হন্তান্তর অনুষ্ঠানে মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা তাঁর কার্যালয় থেকে ভিডিও কনফারেন্স এর মাধ্যমে উপস্থিত ছিলেন এবং মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর পক্ষে তাঁর মুখ্য সচিব ড. আহমদ কায়কাউস আনুষ্ঠানিকভাবে অনুদানের চেক গ্রহণ করেন। চেক হস্তান্তর অনুষ্ঠানে আইন, বিচার ও সংসদ বিষয়ক মন্ত্রনালয়ের মাননীয় সচিব মোঃ গোলাম সারওয়ার উপস্থিত ছিলেন। বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ, কেন্দ্রীয় কার্যনির্বাহী কমিটির সদস্য, (খুলনা-বাগেরহাট) সংরক্ষিত মহিলা আসনের সংসদ সদস্য এবং আইন, বিচার ও সংসদ বিষয়ক মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত সংসদীয় স্থায়ী কমিটির সদস্য এ্যাডভোকেট গ্লোরিয়া ঝর্না সরকার। এসোসিয়েশনের পক্ষে সভাপতি শাহ মোঃ মামুন, সাধারণ সম্পাদক কাজী সালাউদ্দিন দিদার এবং সাংগঠনিক সম্পাদক মোঃ নাজিম উদ্দিন অনুদানের চেক হস্তান্তর করেন। বিষয়টি এসোসিয়েশনের কুষ্টিয়া জেলা কমিটির সাধারণ সম্পাদক তারিক আহাম্মেদ রিংকু নিশ্চিত করেন। সংবাদ বিজ্ঞপ্তি

দেশে করোনায় আরো ২৬ জনের মৃত্যু, নতুন শনাক্ত ১৫৪৪

ঢাকা অফিস ॥ মহামারি করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে গত ২৪ ঘণ্টায় দেশে আরো ২৬ জনের মৃত্যু হয়েছে। এ নিয়ে মোট মৃতের সংখ্যা বেড়ে চার হাজার ৯৩৯ জনে দাঁড়িয়েছে। এছাড়া নতুন করে এক হাজার ৫৪৪ জনের শরীরে করোনা শনাক্ত হয়েছে। যার ফলে মোট আক্রান্তের সংখ্যা পৌঁছেছে তিন লাখ ৪৮ হাজার ৯১৬ জনে। স্বাস্থ্য অধিদফতর থেকে গতকাল রোববার পাঠানো করোনা সংক্রান্ত নিয়মিত সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য জানানো হয়েছে। বিজ্ঞপ্তি অনুযায়ী, করোনা শনাক্তের জন্য দেশের সরকারি ও বেসরকারি ৯৭টি ল্যাবে গত ২৪ ঘণ্টায় নমুনা সংগ্রহ করা হয়েছে ১০ হাজার ৭৮৭টি এবং পরীক্ষা করা হয়েছে ১১ হাজার ৫৯১টি। এ নিয়ে মোট নমুনা পরীক্ষা করা হলো ১৮ লাখ ২১ হাজার ২৭০টি। ২৪ ঘণ্টায় নমুনা পরীক্ষা বিবেচনায় শনাক্তের হার ১৩.৩২ শতাংশ। আর মোট পরীক্ষায় এ পর্যন্ত শনাক্ত হয়েছেন ১৯.১৬ শতাংশ। নতুন যে ২৬ জন মারা গেছেন তাদের মধ্যে পুরুষ ১৭ এবং নারী নয়জন। এখন পর্যন্ত মোট মারা যাওয়াদের মধ্যে পুরুষ তিন হাজার ৮৪৬ জন বা ৭৭.৮৭ শতাংশ এবং নারী এক হাজার ৯৩ জন বা ২২.১৩ শতাংশ। শনাক্ত বিবেচনায় মোট মৃত্যুর হার ১.৪২ শতাংশ। এদিকে করোনা থেকে গত ২৪ ঘণ্টায় সুস্থ হয়েছেন আরো দুই হাজার ১৭৯ জন। এ নিয়ে দেশে মোট সুস্থ ব্যক্তির সংখ্যা দাঁড়িয়েছে দুই লাখ ৫৬ হাজার ৫৬৫ জনে। শনাক্ত বিবেচনায় সুস্থতার হার এখন পর্যন্ত ৭৩.৫৩ শতাংশ। গত ৮ মার্চ বাংলাদেশে প্রথম করোনা রোগী শনাক্তের পর ১৮ মার্চ প্রথম একজনের মৃত্যু হয়।

অবৈধ স্থাপনা উচ্ছেদে ১০ দিনের আল্টিমেটাম

 কুষ্টিয়া জেলা পরিষদ চেয়ারম্যান হাজী রবিউলের দখলে সওজ’র ৫ শতক জমি

বিশেষ প্রতিনিধি ॥ কুষ্টিয়ায় জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান হাজী রবিউলের দখলে থাকা বেশ কয়েকটি জমি উদ্ধারে নোটিশ করা হয়েছে। এর মধ্যে লাহিনী এলাকায় সড়ক ও জনপথের প্রায় ৫ শতক জমি এবং গড়াই নদীর তীরে জেলা প্রশাসনের ১৫ একর তিনি জবর দখল করে ভোগ করছেন।

ইতিমধ্যে সড়ক ও জনপথ থেকে আগামী ১০দিনের মধ্যে দখলকৃত জমি থেকে প্রাচীরসহ স্থাপনা সরিয়ে নেয়ার নোটিশ দেয়া হয়েছে। পাশাপাশি জেলা প্রশাসন থেকে দখলকৃত জমি থেকে স্থাপনা সরিয়ে নেয়ার নির্দেশনা জারি করা হচ্ছে।

জেলা প্রশাসন সূত্র জানায়, বড় বাজার এলাকায় গড়াই নদীর তীরে জেলা প্রশাসনের অধীনে থাকা ১৫ একর জমি জেলা পরিষদ দখল করে কোন অনুমতি না নিয়ে পার্ক নির্মাণ কাজ করছে। গত ৫ বছর ধরে চলে আসছে পার্কের কাজ। দখলকৃত নদীর জায়গায় সরকারি অর্থে পার্কের  বেশ কিছু কাজ ইতিমধ্যে শেষ করা হয়েছে।

এদিকে জেলা প্রশাসন থেকে গত আগষ্ট মাসে সরেজমিন পরিদর্শন করে ভূমি অফিসের সার্ভেয়ার প্রতিবেদন দাখিল করেন। এরপর সহকারি কমিশনার (ভূমি) কর্মকর্তা একটি প্রতিবেদন দেন উপজেলা নির্বাহী অফিসার বরাবর। গত কয়েকদিন আগে সদর উপজেলা নির্বাহী অফিসার জুবায়ের হোসেন চৌধুরী অবৈধ দখল ও উচ্ছেদের বিষয়ে বিস্তারিত জানিয়ে জেলা প্রশাসন বরাবর পত্র দিয়েছে। পত্রে দখলকৃত জমি উদ্ধারে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নিতে তিনি জেলা প্রশাসককে অনুরোধ করেছে।

উপজেলা নির্বাহী অফিসার জুবায়ের হোসেন চৌধুরী বলেন,‘ জেলা প্রশাসনের ১৫ একর জায়গার ওপর পার্কের কাজ করছে জেলা পরিষদ। তবে এ জন্য কোন অনুমোদন নেয়। এ কারনে নদীর জায়গা দখল করার জন্য তাদের নোটিশ করা হবে। এ জন্য প্রক্রিয়া চলমান রয়েছে।’

এদিকে শহরতলীর লাহিনী এলাকায় কুষ্টিয়া-রাজবাড়ী আঞ্চলিক মহাসড়কের পাশে লাহিনী মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের প্রাচীর থেকে শুরু করে একেবারে মহাসড়কের গা ঘেঁষে প্রায় দুই বিঘা জমিতে শক্ত প্রাচীর দিয়ে রেখেছেন হাজি রবিউল ইসলাম।

জানা গেছে, তিনি এখানে মাত্র ৪ কাঠা জমি কিনে তার কয়েকগুন বেশি জমি দখল করে রেখেছেন। এ জমির মধ্যে সড়ক ও জনপথের প্রায় ৫ শতক জমি রয়েছে। বাকি জমি অন্য দপ্তরের। বাজারের কিছু জমিও রয়েছে দখলের মধ্যে।

এদিকে সড়ক ও জনপথ অফিস থেকে গতকাল রোববার সকালে লাল চিহৃ দিয়ে মার্ক করে দেয়া হয়। পাশাপাশি হাজি রবিউল ইসলামকে নোটিশ করা হয়েছে। ১০ কার্যদিবসের মধ্যে নিজ উদ্যোগে স্থাপনা সরিয়ে নেয়ার নির্দেশ দিয়ে নোটিশ জারি করা হয়েছে। এ সময়ের মধ্যে সরিয়ে না নেয়া হলে আইন অনুযায়ী ব্যবস্থা নেয়া হবে। দখলকৃত জমিতে গাছ লাগানো হয়েছে। সামনের দিকে বড় একটি গেইট নির্মাণ করা হয়েছে।’

সড়ক ও জনপদ বিভাগের নির্বাহী প্রকৌশলী তানিমুল ইসলাম বলেন, অবৈধভাবে সড়কের জায়গা দখল করে ঘিরে রাখা হয়েছে। এ ব্যাপারে রোববার সকালে সেখানে লাল কালি দিয়ে মার্ক করে দেওয়া হয়েছে। হাজী রবিউল ইসলামের কাছে নোটিশ দেওয়া হয়েছে। আগামী ১০ দিনের মধ্যে নিজ দায়িত্বে অবৈধ স্থাপনা সরিয়ে ফেলার জন্য। তা না হলে ম্যাজিষ্ট্রেটের উপস্থিতিতে ভেঙে ফেলা হবে।

কুষ্টিয়া সদর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা জুবায়ের হোসেন চৌধুরী বলেন, পার্কের পুরো ৪৫ বিঘা জায়গায় গড়াই নদীর। জেলা প্রশাসন থেকে জেলা পরিষদ কোন রকম বন্দোবস্ত না নিয়েই অবৈধভাবে পার্ক নির্মাণ করছে। এজন্য নোটিশ দেওয়া হয়েছে। যথাযথ প্রক্রিয়ার মাধ্যমে স্থাপনা ভেঙে ফেলা হবে।

ত্রাণ তহবিলের জন্য ১৬৫ কোটি টাকা অনুদান গ্রহণ করলেন প্রধানমন্ত্রী

ঢাকা অফিস ॥ দেশের ৩৪টি বেসরকারি ব্যাংকসহ ৪০টিরও বেশি প্রতিষ্ঠান গতকাল রোববার  কোভিড-১৯ এ ক্ষতিগ্রস্ত দরিদ্রদের সহায়তায় প্রধানমন্ত্রীর ত্রাণ ও কল্যাণ তহবিলে ১৬৫ কোটি টাকা এবং সার্জিক্যাল মাস্ক প্রদান করেছে। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা তার সরকারি বাসভবন গণভবন থেকে ভিডিও কনফারেন্সিংয়ের মাধ্যমে এসব অনুদান গ্রহণ করেন। সংগঠনের প্রতিনিধিরা প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের মুখ্য সচিব ড. আহমদ কায়কাউসের কাছে অনুদানের চেক হস্তান্তর করেন। এর মধ্যে বাংলাদেশ অ্যাসোসিয়েশন অব ব্যাংকের (বিএবি) নেতৃত্বে ৩৪টি ব্যাংক অনুদান হিসেবে মোট ১৬৪ কোটি টাকা প্রদান করে। অনুদান দেয়া অন্যান্য প্রতিষ্ঠানের মধ্যে- খাদ্য মন্ত্রণালয়, ফরেন অফিস স্পাউজ অ্যাসোসিয়েশন (এফওএসএ), রাজশাহী মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়, আর্কিটেক্টস বাংলাদেশ ইনস্টিটিউট, বাংলাদেশ জুডিশিয়াল এমপ্লয়িজ অ্যাসোসিয়েশন এবং মিনিস্টার গ্র“প নগদ অর্থের পাশাপাশি ১ লাখ সার্জিক্যাল মাস্ক প্রদান করে। ৩৪টি ব্যাংক হলো- এবি ব্যাংক লিমিটেড, আল-আরাফাহ ইসলামি ব্যাংক লিমিটেড, ব্যাংক এশিয়া লিমিটেড, ব্র্যাক ব্যাংক লিমিটেড, সিটি ব্যাংক লিমিটেড, ঢাকা ব্যাংক লিমিটেড, ডাচ-বাংলা ব্যাংক লিমিটেড, ইস্টার্ন ব্যাংক লিমিটেড, এক্সিম ব্যাংক, ফার্স্ট সিকিউরিটি ইসলামি ব্যাংক লিমিটেড, ইসলামি ব্যাংক (বিডি) লিমিটেড, যমুনা ব্যাংক লিমিটেড, মার্কেন্টাইল ব্যাংক লিমিটেড, মিডল্যান্ড ব্যাংক লিমিটেড, মধুমতি ব্যাংক লিমিটেড, মিউচুয়াল ট্রাস্ট ব্যাংক লিমিটেড, ন্যাশনাল ব্যাংক লিমিটেড, এনসিসি ব্যাংক লিমিটেড, এনআরবি ব্যাংক লিমিটেড, এনআরবি কমার্শিয়াল ব্যাংক লিমিটেড, এনআরবি গ্লোবাল ব্যাংক লিমিটেড, ওয়ান ব্যাংক লিমিটেড, পদ্মা ব্যাংক লিমিটেড, প্রাইম ব্যাংক লিমিটেড, পূবালী ব্যাংক লিমিটেড, এসবিএসি ব্যাংক লিমিটেড, শাহজালাল ইসলামি ব্যাংক লিমিটেড, সোশ্যাল ইসলামি ব্যাংক লিমিটেড, সাউথইস্ট ব্যাংক লিমিটেড, স্ট্যান্ডার্ড ব্যাংক লিমিটেড, ট্রাস্ট ব্যাংক লিমিটেড, ইউনিয়ন ব্যাংক লিমিটেড, ইউনাইটেড কমার্শিয়াল ব্যাংক লিমিটেড এবং উত্তরা ব্যাংক লিমিটেড। বাংলাদেশে করোনা পরিস্থিতি:- মহামারি করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে গত ২৪ ঘণ্টায় দেশে আরও ৩২ জনের মৃত্যু হয়েছে। এ নিয়ে মোট মৃতের সংখ্যা বেড়ে ৪ হাজার ৯১৩ জনে দাঁড়িয়েছে। এছাড়া, নতুন করে ১ হাজার ৫৬৭ জনের শরীরে করোনা শনাক্ত হয়েছে। যার ফলে মোট আক্রান্তের সংখ্যা পৌঁছেছে ৩ লাখ ৪৭ হাজার ৩৭২ জনে। স্বাস্থ্য অধিদফতর থেকে গত শনিবার পাঠানো করোনা সংক্রান্ত নিয়মিত সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য জানানো হয়েছে। বিজ্ঞপ্তি অনুযায়ী, করোনা শনাক্তের জন্য দেশের সরকারি ও বেসরকারি ৯৫টি ল্যাবে গত ২৪ ঘণ্টায় নমুনা সংগ্রহ করা হয়েছে ১২ হাজার ৫৮৭টি এবং পরীক্ষা করা হয়েছে ১৩ হাজার ১৭০টি। এ নিয়ে মোট নমুনা পরীক্ষা করা হলো ১৮ লাখ ৯ হাজার ৬৭৯টি। ২৪ ঘণ্টায় নমুনা পরীক্ষা বিবেচনায় শনাক্তের হার ১১.৯০ শতাংশ। আর মোট পরীক্ষায় এ পর্যন্ত শনাক্ত হয়েছেন ১৯.২০ শতাংশ। নতুন যে ৩২ জন মারা গেছেন তাদের মধ্যে পুরুষ ২৫ এবং নারী ৭ জন। এখন পর্যন্ত মোট মারা যাওয়াদের মধ্যে পুরুষ ৩ হাজার ৮২৯ জন বা ৭৭.৯৪ শতাংশ এবং নারী ১ হাজার ৮৪ জন বা ২২.০৬ শতাংশ। শনাক্ত বিবেচনায় মোট মৃত্যুর হার ১.৪১ শতাংশ। এদিকে, করোনা থেকে গত ২৪ ঘন্টায় সুস্থ হয়েছেন আরও ২ হাজার ৫১ জন। এ নিয়ে দেশে মোট সুস্থ ব্যক্তির সংখ্যা দাঁড়িয়েছে ২ লাখ ৫৪ হাজার ৩৮৬ জনে। শনাক্ত বিবেচনায় সুস্থতার হার এখন পর্যন্ত ৭৩.২৩ শতাংশ। গত ৮ মার্চ বাংলাদেশে প্রথম করোনা রোগী শনাক্তের পর ১৮ মার্চ প্রথম একজনের মৃত্যু হয়।

 

কুষ্টিয়ায় শুদ্ধি অভিযানকে স্বাগত জানিয়েছে নেতা-কর্মি ও সাধারন মানুষ

দলীয় সন্ত্রাসীদের বিরুদ্ধে কঠোর অবস্থানে পুলিশ প্রশাসন

মূল দলের পাশাপাশি সহযোগী সংগঠনের বিতর্কিত ও অনুপ্রবেশকারীদের বিষয়ে কঠোর হচ্ছে আওয়ামীলীগ

বিশেষ প্রতিনিধি ॥ দীর্ঘদিন পরে হলেও কুষ্টিয়ায় আওয়ামী লীগ ও সহযোগী সংগঠনে ঢুকে পড়া অনুপ্রবেশকারী ও বিতর্কিতদের বিষয়ে কঠোর হচ্ছে দলের হাইকমান্ড। পাশাপাশি দলীয় সন্ত্রাসী ও দলের নাম ভাঙ্গিয়ে যারা টেন্ডারবাজি, চাঁদাবাজি ও দখলবাজীসহ নানা অপকর্মের সাথে জড়িয়ে পড়েছেন তাদের বিষয়ে প্রশাসন কঠোর অবস্থানে যেতে শুরু করেছে। ইতিমধ্যে জমি জালিয়াতির ঘটনায় শহর যুবলীগের কমিটি বিলুপ্ত করা হয়েছে। এর কয়েকদিন পরেই ভেঙ্গে দেয়া হয়েছে ছাত্রলীগের কমিটি। জেলা য্বুলীগের কয়েকজন নেতার বিরুদ্ধে নানা অভিযোগ ওঠায় এ কমিটি ভেঙ্গে দেয়া হতে পারে যে কোন মুহুর্তে। এদিকে দলের দুই নেতাকে গ্রেপ্তারের পর পাল্টে গেছে পুরো চিত্র।

এদিকে পুলিশ প্রশাসন জমি জালিয়াতের মূল হোতা শহর যুবলীগের সাবেক আহবায়ক আশরাফুজ্জামান সুজন ও দখল এবং চাঁদাবাজিতে জড়িত থাকায় ছাত্রলীগের সাবেক নেতা আমিনুর রহিম পল¬ব গ্রেপ্তারের পর দলে আতঙ্ক ছড়িয়ে পড়েছে। সুজনের নাম আসায় কমিটি বিলুপ্ত করে দেয়া হয় কেন্দ্র থেকে।

জেলা আওয়ামী লীগের সাধারন সম্পাদক আজগর আলী জানান,‘ প্রথম থেকে আমরা বলে আসছিলাম অনুপ্রবেশকারীরা দলে ঢুকে অপকর্ম করবে। এখন সেই কাজই এখানে হচ্ছে। নানা অপকর্ম করে দলকে তারা ডুবাচ্ছে। আমরা দলীয়ভাবে অপকর্মকারীদের বিরুদ্ধে কঠোর ব্যবস্থা নেয়ার পক্ষে। যত প্রভাবশালী হোক না কেন সে।’

দলের একাধিক সিনিয়র নেতা জানান, জমি জালিয়াতির বিষয়টি সামনে আসার পর দেখা যায় আওয়ামী লীগ ও সহযোগী সংগঠনের কয়েকজন শীর্ষ নেতা জড়িত। এরপর বিষয়টি সারা দেশে আলোচিত হয়। এমন ঘটনা প্রকাশ হওয়ার পর চরম ক্ষুব্ধ হন আওয়ামী লীগের যুগ্ম সম্পাদক মাহবুবউল আলম হানিফ এমপি। তিনি প্রশাসনকে কঠোরহস্তে অপরাধীদের দমন করার নির্দেশ দেন। পাশাপাশি দলীয়ভাবে অভিযুক্তদের ব্যাপারে ব্যবস্থা নিতে নির্দেশনা দেন আলাদাভাবে।

জেলা আ’লীগ নেতারা জানান, মাহবুবউল আলম হানিফ এ বিষয়ে দলীয় নেতাদের নানা নির্দেশনা দেয়ার পাশাপাশি প্রশাসনকেও খতিয়ে দেখে ব্যবস্থা নেয়ার কড়া নির্দেশ দিয়েছে। তার সিগন্যাল পাওয়ার পর পরই সুজনকে গ্রেপ্তার করে পুলিশ। এছাড়া এ ঘটনার মূল হোতা মহিবুল ইসলামকে গ্রেপ্তারের বেরিয়ে আসে নানা চাঞ্চল্যকর তথ্য।

কুষ্টিয়া সদর আসনের সংসদ সদস্য মাহবুবউল আলম হানিফ এক বার্তায় বলেছেন, অপরাধী সে যেই হোক তাকে আইনের আওতায় এনে শাস্তির ব্যবস্থা করতে হবে। বিশেষ করে দলের নাম ভাঙ্গিয়ে যারা অপকর্ম করছে তাদের শক্তভাবে দমনের নির্দেশনা দিয়েছেন তিনি।

সর্বশেষ শহরের এনএস রোডে চাঁদাবাজি, দখলসহ নানা অপকর্ম নিয়ে আমিনুর রহিম পল¬বের বিরুদ্ধে সংবাদ প্রকাশের পর গোয়েন্দা পুলিশ তাকে আটক করে। এরপর তার বিরুদ্ধে চাঁদাবাজি ও অস্ত্র উদ্ধারের ঘটনায় আলাদা মামলা হয়েছে। পল¬ব দীর্ঘদিন কয়েকজন নেতার নাম ভাঙ্গিয়ে নানা অপকর্ম করে আসছিলেন। বিষয়টি জানলেও এতদিন চুপ ছিলেন সবাই। সম্প্রতি সংবাদ প্রকাশের পর নড়েচড়ে বসে প্রশাসন ও দল।

এদিকে সহযোগী সংগঠনের দুই প্রভাবশালী নেতা গ্রেপ্তারের পর আতঙ্ক ছড়িয়ে পড়েছে দলের অভ্যন্তরে। যারা বালু ঘাট দখল, টেন্ডারবাজি, দলের নাম ভাঙ্গিয়ে নানা অপকর্ম করছেন তারা অনেকটা চুপসে গেছেন।

জেলা যুবলীগের সভাপতি রবিউল ইসলাম বলেন, দলের নাম ভাঙ্গিয়ে যারা অপকর্ম করছে তাদের বিরুদ্ধে আমাদের শক্ত অবস্থান। আমাদের সংগঠনের কেউ যদি অপকর্মে জড়িত থাকে তার বিরুদ্ধে প্রয়োজনে ব্যবস্থা নেয়া হবে। শহর যুবলীগের কমিটির একজন নেতার কারনে যুবলীগের কিছু বদনাম হয়েছে। সে ছাত্রদল থেকে আমাদের দলে আসে। বিষয়টি আমরা আগে থেকেই কেন্দ্রকে জানায়।’

আওয়ামী লীগের একজন শীর্ষ নেতা জানান,‘ অপকর্মকারীদের বিরুদ্ধে দল কঠোর অবস্থানে। কাউকে ছাড় দেয়ার কোন সুযোগ নেয়। সকলকে বিষয়টি জানিয়ে দেয়া হয়েছে।

এদিকে পুলিশ প্রশাসন দলীয় সন্ত্রাসীদের বিরুদ্ধে কঠোর অবস্থান নিয়েছে। পল¬বকে গ্রেপ্তারের পর তার বাড়িতে তল¬াশী চালিয়ে দেশীয় অস্ত্র উদ্ধার করেছে। তার সহযোগী আবু তাহেরকেও অস্ত্রসহ গ্রেপ্তার করেছে। এর আগে সুজনের অফিস থেকেও অস্ত্র উদ্ধার করে পুলিশ।

পুলিশ সুপার এসএম তানভীর আরাফাত বলেন,‘ অপরাধীদের কোন দল নেই। তাই অপরাধী আইনের চোখে অপরাধী। অপরাধী সে যেই হোক তাকে ছাড় দেয়া হবে না। সন্ত্রাসীদের পক্ষে সুপারিশকারীদেরও আইনের আওতায় নিয়ে আসা হবে।

এদিকে পুলিশ প্রশাসনের কাজে ব্যাপক খুশি দলীয় নেতা-কর্মি থেকে শুরু করে সাধারন মানুষ। দীর্ঘদিন পর দলীয় সন্ত্রাসীদের বিরুদ্ধে অভিযানকে স্বাগত জানিয়েছে সব শ্রেণী পেশার মানুষ। তারা ধারাবাহিকভাবে এ কাজ চালিয়ে যাওয়ার জন্য অনুরোধ জানিয়েছেন। যাতে কেউ সুযোগ না পাই  অপকর্ম করার।

কুষ্টিয়া চেম্বারের পরিচালক ওমর ফারুক বলেন, পুলিশ যে কাজ করছে তাতে সাধারন মানুষ খুশি। এতদিন যে কাজ কেউ করতে পারেনি বর্তমান পুলিশ সুপার সে কাজ করে সাড়া ফেলেছেন। সন্ত্রাসীদের কোন দল নেই। তারা দলের নাম ভাঙ্গিয়ে অপকর্ম করে। এতে সমাজ ক্ষতিগ্রস্থ হয়। তাই সকল অপরাধীকে আইনের আওতায় আনা প্রয়োজন।

জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি সদর উদ্দিন খান বলেন, অনুপ্রবেশকারি ও বিতর্কিত এবং সন্ত্রাসীদের কোন জায়গা আওয়ামী লীগে হবে না। যারা অপকর্ম করছে তাদের বিরুদ্ধে অ্যাকশন শুরু হয়ে গেছে। সামনে আরো কঠিন দিন আসছে। তাই সকলকে তিনি দলীয় শৃংখলা মেনে চলার অনুরোধ জানান।