সৌদি আরবে করোনায় ৭২৩ বাংলাদেশির মৃত্যু

ঢাকা অফিস ॥ সৌদি আরবে করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে প্রায় ৭২৩ জন প্রবাসী বাংলাদেশির মৃত্যু হয়েছে। সেখানে করোনায় অন্তত আটজন বাংলাদেশি চিকিৎসক মারা গেছেন। গতকাল বুধবার রিয়াদের বাংলাদেশ দূতাবাস সূত্র এ তথ্য জানিয়েছে। সৌদি আরবে নিযুক্ত বাংলাদেশের রাষ্ট্রদূত গোলাম মসীহ সেখানে প্রবাসীদের মৃত্যুতে গভীর শোক প্রকাশ করেন। একই সঙ্গে তাদের রূহের মাগফেরাত কামনা করেন। রাষ্ট্রদূত গোলাম মসীহ বলেন, এ অনাকাক্সিক্ষত দুর্যোগে রিয়াদ দূতাবাস এবং জেদ্দা কনস্যুলেট থেকে প্রবাসীদের আমরা যথাসাধ্য সাহায্য ও সহযোগিতা করেছি। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা প্রদত্ত সহযোগিতা দূতাবাসের কর্মকর্তারা গুরুত্বের সঙ্গে অসহায় প্রবাসীদের কাছে পৌঁছে দিয়েছেন।

মাঠে রয়েছে পুলিশের একাধিক টিম

ঈদুল আযহায় মাদকসহ সকল প্রকার নাশকতা রোধে এবং আইনশৃঙ্খলা রক্ষায় কঠোর অবস্থানে কুষ্টিয়া পুলিশ

বিশেষ প্রতিনিধি ॥ পবিত্র ঈদুল আযহায় যাতে জেলার আইনশৃঙ্খলা পরিস্থিতির অবনতি না হয় সে জন্য কঠোর অবস্থান নিয়েছে কুষ্টিয়া পুলিশ। কুষ্টিয়ার পুলিশ সুপার এস এম তানভির আরাফাতের নির্দেশে জেলার ৭ থানার পুলিশ এরই মধ্যে বিশেষ তৎপরতা শুরু করেছে। পাশাপাশি মাঠে নেমেছে জেলার  গোয়েন্দা পুলিশও। যে কোন মূল্যে পুলিশ জেলার আইন-শৃঙ্খলার স্থিতিশীল অবস্থা ধরে রাখতে বদ্ধপরিকর।

আর একদিন বাদেই খুশীর ঈদ। যদিও করোনা পরিস্থিতিতে অনেক মানুষের মধ্যে শঙ্কা রয়েছে। তারপরও মানুষ নিজ নিজ সামর্থ অনুযায়ী ঈদ উৎযাপনের প্রস্ততি নিচ্ছে। ঢাকাসহ জেলার নানা প্রান্তে কর্মরত এ জেলার বিপুল সংখ্যক মানুষ ইতিমধ্যে নাড়ীর টানে এলাকায় ফিরেছেন। এবারের ঈদে যাতে জেলায় এ ধরণের কোন ঘটনা না ঘটে। যাতে মানুষ নির্বেঘেœ পবিত্র ঈদুল আযহা উদাযাপন করতে পারে, তাদের পশু কোরবানী দিতে পারে। সেটা নিশ্চিত করতে জেলা পুলিশ নিরলসভাবে কাজ করে যাচ্ছে। জেলা পুলিশের একটি সূত্র জানায়, ভারত সীমান্ত ঘেঁষা জেলা হিসেবে এখানে মাদক বিক্রেতা ও মাদকসেবীদের তৎপরতা নতুন কিছু নয়। আর ঈদ এলে এই চক্রের তৎপরতা আরো বেড়ে যায়। পাশাপাশি চুরি-ছিনতাইসহ নাশকতামূলক ঘটনা ঘটারও আশঙ্কা থাকে ঈদে। সূত্র বলছে এবারের ঈদে জেলার দৌলতপুর থেকে খোকসা, হরিপুর থেকে ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয় পর্যন্ত নিরাপত্তার চাদরে ঢেকে ফেলা হবে। এদিকে কুষ্টিয়ার পুলিশ সুপার এসএম তানভির আরাফাত এবার কুষ্টিয়া পৌর এলাকার জন্য পুলিশের একাধিক বিশেষ টিম গঠন করেছেন। এসব টিম ইতিমধ্যে মাঠে নেমে পড়েছে। তারা চষে বেড়াচ্ছে শহরের এ প্রান্ত থেকে ও প্রান্তে। পাশাপাশি জেলার ৭টি থানা তথা দৌলতপুর, ভেড়ামারা, মিরপুর, সদর, কুমারখালী, খোকসা ও ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয় থানার ওসিদের বিশেষ নির্দেশনা দিয়েছেন পুলিশ সুপার। এ নির্দেশনা অনুযায়ী বুধবার জেলা ৭টি থানায় আসন্ন পবিত্র ঈদুল আযহাকে সামনে রেখে মাদকসহ সকল প্রকার নাশকতা রোধে এবং আইনশৃঙ্খলা পরিস্থিতি স্বাভাবিক রাখতে পুলিশের বিশেষ মহড়া অনুষ্ঠিত হয়েছে। এ উপলক্ষে কোন কোন থানা এলাকায় শোভাযাত্রায়ও বের করা হয়।

ঢাকা থেকে গ্রামের কুষ্টিয়ার আলামপুরে পরিবারের সাথে ঈদ করতে এসেছেন গার্মেন্ট কর্মী আব্দুল জলিল। তিনি বলেন, অনেকদিন পর এলাকায় ফিরে ভাল লাগছে। কারণ, এক সময় এসব এলাকায় চরমন্থীদের আনাগোনা থাকলেও এখন তারা শান্তিতে ঘুমাতে পারছেন, নির্বেঘেœ চলাচল করতে পারছেন। তিনি বলেন, পুলিশের তৎপরতায় আইন-শৃঙ্খলার এ সদিন আনা সম্ভব হয়েছে। জেলার দৌলতপুর উপজেলার তারাগুনিয়া গ্রামের বাসিন্দা আব্দুল জলিল বলেন, ঈদ আসলে ভয়ে ভয়ে দিন কাটত, এই বুঝি গরু চুরি হয়ে গেল, এই বুঝি ছেলের মোটর সাইকেলটা ছিনতাই হয়ে গেল। কিন্তু এবার পরিস্থিতি আলাদা। প্রতিদিন পুলিশ এলাকায় টহল দিচ্ছে। আশা করছি এবার এলাকায কোন দুর্ঘটনা ঘটবে না। কবলিত এলাকা কুষ্টিয়ার পুলিশ সুপার এস এম তানভীর আরফাত এ ব্যাপারে বলেন, কুষ্টিয়া জেলার আইন-শৃঙ্খলা পরিস্থিতি বর্তমানে পূর্বের যে কোন সময়ের চেয়ে অনেক ভাল অবস্থায় রয়েছে। জেলা পুলিশ যে কোন মূল্যে এ অবস্থা ধরে রাখতে চায়। তিনি বলেন, করোনার কারণে এবারের ঈদুল আযহা ততটা বড় পরিসরে হচ্ছে না। তবে জেলা পুলিশ এই উৎসবকে সর্বাধিক গুরুত্ব দিচ্ছে। এই লক্ষে আইন-শৃঙ্খলা পরিস্থিতি ঢেলে সাজানো হয়েছে। ইতিমধ্যে পুলিশের একাধিক টিম গঠন করা হয়েছে। পাশাপাশি জেলা ৭ থানার ওসিদেরও নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। পুলিশের টিম এরই মধ্যে মাঠে নেমে পড়েছে। ঈদ উৎসব শেষ না হওয়া পর্যন্ত পুলিশ এই তৎপরতা চালিয়ে যাবে। পুলিশ সুপার এ ব্যাপারে জেলার সকল শ্রেণী-পেশার মানুষের সহযোগিতা কামনা করেন।

 

কলম সৈনিক আলহাজ্ব ওয়ালিউল বারী চৌধুরীর মৃত্যুতে মেধা’র শোক

৭১-এর রণাঙ্গনের কলম সৈনিক কুষ্টিয়ার বর্ষিয়ান সাংবাদিক আলহাজ্ব ওয়ালিউল বারী চৌধুরীর মৃত্যুতে গভীর শোক প্রকাশ করে বিবৃতি দিয়েছে মেধা কুষ্টিয়ার সভাপতি ইঞ্জিনিয়ার খন্দকার সালাহউদ্দিন ও সদস্য সচিব শামীম আহমেদ। এক বিবৃতিতে মরহুমের রুহের মাগফেরাত কামনা করেন সেই সাথে শোক সন্তপ্ত পরিবারের সদস্যদের প্রতি গভীর সমবেদনা প্রকাশ করে মহান আল্লাহর নিকট দোয়া কামনা করেন। বিজ্ঞপ্তি

সাংবাদিকতার পথিকৃত আলহাজ্ব ওয়ালিউল বারী চৌধুরীর মৃত্যুতে ফিনল্যান্ড প্রবাসী আব্দুর রশিদের শোক

৭১-এর রণাঙ্গনের কলম সৈনিক কুষ্টিয়ার সাংবাদিকতার বাতিঘর আলহাজ্ব ওয়ালিউল বারী চৌধুরীর মৃত্যুতে গভীর শোক প্রকাশ করে বিবৃতি দিয়েছেন ফিনল্যান্ড প্রবাসী কুষ্টিয়ার কৃতিসন্তান সাবেক জাতীয় ক্রীড়াবিদ ও জাতীয় ক্রীড়া সংগঠক কুষ্টিয়া জেলা ক্রীড়া সংস্থার সাবেক সাধারন সম্পাদক মুহাম্মদ আব্দুর রশিদ। তিনি মরহুমের রুহের মাগফেরাত কামনা করেন এবং শোকসন্তপ্ত পরিবারের সদস্যদের প্রতি গভীর সমবেদনা প্রকাশ করেন। তিনি বিবৃতিতে বলেন, মরহুম ওয়ালিউল বারী চৌধুরী ছিলেন অত্যন্ত মেধাবী, দৃঢ়চেতা সম্পন্ন ব্যক্তিত্ব। মহান স্বাধীনতা যুদ্ধে নিজের এবং পরিবারের জীবনকে বাজি রেখে তিনি নিয়োমিত পত্রিকা প্রকাশ করে স্বাধীনতা বিরোধীদের বিরুদ্ধে কঠোর অবস্থানে থেকে দেশকে স্বাধীন করতে বিশেষ ভূমিকা রেখেছেন। একজন সত্যিকারের মুক্তিযোদ্ধা হয়েও তিনি ছিলেন প্রচারবিমুখ মানুষ। তাঁর মৃত্যুতে দেশ একজন নির্ভিক দেশপ্রেমিক সাংবাদিক হারিয়ে ক্ষতির মধ্যে পড়েছে যার অভাব পুরন অকল্পনীয়। বর্ষিয়ান সাংবাদিক ওয়ালিউল বারী চৌধুরী মৃত্যুর আগ পর্যন্ত সত্য প্রকাশে কোন চাপের মুখে মাথা নত করেননি । তিনি অসংখ্য সাংবাদিক ও লেখক তৈরীর কারখানা ছিলেন। তার হাতে গড়ে উঠা সাংবাদিক ও লেখকেরা আজ দেশের গন্ডি পেরিয়ে আন্তর্জাতিক অঙ্গনে নিজেদেরকে উজ্জল স্বাক্ষর রেখে দেশের ভাবমুতি উজ্জল করেছেন। তিনি মরহুমের পরকালীন জীবনের শান্তি কামনা করেন। সংবাদ বিজ্ঞপ্তি

দৌলতপুরে যুবকের লাশ উদ্ধার

দৌলতপুর প্রতিনিধি ॥ কুষ্টিয়ার দৌলতপুরে আকাশ আহমেদ লিটন (৩২) নামে এক যুবকের লাশ উদ্ধার করেছে পুলিশ। গতকাল মঙ্গলবার সকাল ৯টার দিকে উপজেলার তারাগুনিয়া বাজারপাড়া এলাকায় নিজ ঘর থেকে তার লাশ উদ্ধার করা হয়। সে একই এলাকার মির্জা আলম শেখের ছেলে। পুলিশ ও স্থানীয়রা জানায়, পারিবারিক বিরোধ নিয়ে লিটন আহমেদ প্রকাশ্য দিবালোকে নিজ ঘরের ডাফের সাথে গলায় ফাঁশ দিয়ে আত্মহত্যা করে। খবর পেয়ে দৌলতপুর থানা পুলিশ নিহত যুবকের লাশ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য মর্গে প্রেরণ করে। যুবকের লাশ উদ্ধারের বিষয়ে দৌলতপুর থানার ওসি এস এম আরিফুর রহমান জানান, পারিবারিক বিষয় নিয়ে লিটন আত্মহত্যা করে থাকতে পারে। লাশের ময়নাতদন্তের পর বিস্তারিত জানানো সম্ভব হবে।

কুষ্টিয়ায় ঈদুল আযহা’র প্রস্তুতি ও করোনা ভাইরাস প্রতিরোধ কমিটির সভা

নিজ সংবাদ ॥ কুষ্টিয়ায় ঈদুল আযহা উপলক্ষ্যে প্রস্তুতিমূলক সভা ও কুষ্টিয়া জেলার করোনা ভাইরাস (কোভিড-১৯) প্রতিরোধের লক্ষ্যে জেলা কমিটির সভা অনুষ্ঠিত হয়েছে। গতকাল  ২৮ জুলাই মঙ্গলবার সকালে কুষ্টিয়া জেলা প্রশাসকের সম্মেলন কক্ষে এ সভাদ্বয় অনুষ্ঠিত হয়। সভায় সভাপতিত্ব করেন কুষ্টিয়ার জেলা প্রশাসক মোঃ আসলাম হোসেন। সভায় আলোচনা শেষে সিদ্ধান্ত গ্রহণ করা হয়। ঈদুল আযহা উপলক্ষ্যে প্রস্তুতিমূলক সভা ও কুষ্টিয়া জেলার করোনা ভাইরাস (কোভিড-১৯) প্রতিরোধের লক্ষ্যে অনুষ্ঠিত জেলা কমিটির এ সভায় অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (সার্বিক) লুৎফুন নাহার, জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান হাজী রবিউল ইসলামসহ অন্যান্য সদস্যবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন।

দৌলতপুর থানা পুলিশের বিশেষ অভিযান

৫৪৪ বোতল ফেনসিডিল ও ১ কেজি গাঁজা উদ্ধার :  গ্রেফতার-৪

শরীফুল ইসলাম ॥ কুষ্টিয়ার দৌলতপুর থানা পুলিশের পৃথক অভিযানে ৫৪৪ বোতল ফেনসিডিল ও ১ কেজি গাঁজা উদ্ধার হয়েছে। এ ঘটনায় গ্রেফতার হয়েছে ৪জন মাদক ব্যবসায়। গতকাল মঙ্গলবার সকাল ও ভোরে উপজেলার খলিশাকুন্ডি, ভাগজোত ও হোসেনাবাদ এলাকায় পৃথক অভিযান চালিয়ে বিপুল পরিমান মাদকসহ ৪জন মাদক ব্যবসায়ীকে গ্রেফতার করা হয়।

দৌলতপুর থানা পুলিশ সূত্র জানায়, মাদক পাচারের গোপন সংবাদ পেয়ে দৌলতপুর থানার ওসি এস এম আরিফুর রহমানের নির্দেশে দৌলতপুর থানা পুলিশ গতকাল সকাল ৯টার দিকে কুষ্টিয়া-মেহেরপুর সড়কের খলিশাকুন্ডি এলাকার কাতলামারী পশুহাটের নিকট অভিযান চালিয়ে ৫০০ বোতল ফেনসিডিলসহ মাদক ব্যবসায়ী আবু সাইদ (২০) ও রজব আলী (২৪) কে গ্রেফতার করে। এরা পাশর্^বতী মেহেরপুর জেলার গাংনী উপজেলার (তেতুলবাড়িয়া-করমদি) মথুরাপুর গ্রামের মৃত ইব্রাহিম শেখ ও চান শেখের ছেলে। তিন চাকার আলমসাধুতে পাটখড়ি বোঝাই করে অভিনব কায়দায় এরা মাদক পাচার করছিল।

অপরদিকে গতকাল ভোর সোয়া ৫টার দিকে উপজেলার রামকৃষ্ণপুর ইউনিয়নের ভাগজোত তালতলা এলাকার মুনছুর মন্ডলের ছেলে মাদক ব্যবসায়ী নজিবুল মন্ডলের (৩৬) বাড়িতে অভিযান চালিয়ে ৪৪ বোতল ফেনসিডিলসহ তাকে গ্রেফতার করে পুলিশ। ছাড়াও উপজেলার হোসেনাবাদ মাদ্রাসাপাড়া এলাকায় গতকাল সকাল সোয়া ৯টার দিকে অভিযান চালিয়ে ১কেজি গাঁজাসহ মাদক ব্যবসায়ী কাকন মন্ডল (২৬) কে গ্রেফতার করে পুলিশ। সে সীমান্ত সংলগ্ন জামালপুর গ্রামের মিল্ট মন্ডলের ছেলে। দৌলতপুর থানা পুলিশের পৃথক অভিযানে মাদকসহ গ্রেফতার হওয়া মাদক ব্যবসায়ীদের বিরুদ্ধে মাদক আইনে পৃথক মামলা হলে তাদের আদালতে সোপর্দ করা হয়।

কুষ্টিয়ায় একদিনে নতুন  করে ৫৭ জন করোনা রোগী সনাক্ত

নিজ সংবাদ ॥ কুষ্টিয়ায় একদিনে ৫৭ জন নতুন করোনা  রোগী সনাক্ত হয়েছে। গতকাল ২৮ জুলাই মঙ্গলবার রাতে কুষ্টিয়া জেলা প্রশাসকের পক্ষ থেকে এ তথ্য নিশ্চিত করা হয়েছে। কুষ্টিয়া মেডিকেল কলেজের বরাত দিয়ে জেলা প্রশাসকের পক্ষ থেকে জানানো হয়, পিসিআর ল্যাবে ২৮ জুলাই ২৮২ টি স্যাম্পলের নমুুনা পরীক্ষা করা হয়। এর মধ্যে কুষ্টিয়ার ১৮৭ টি নমুুনা ছিলো। তাতে কুষ্টিয়ায় একদিনে ৫৭ জন নতুন করোনা রোগী সনাক্ত হয়েছে। এর মধ্যে কুষ্টিয়া সদর উপজেলার ৩৭ জন, দৌলতপুর উপজেলার ৭ জন, কুমারখালী উপজেলার ৫ জন,  খোকসা উপজেলার ৪ জন, মিরপুর উপজেলার ৩ জন ও ভেড়ামারা উপজেলার ১ জন নতুন করোনা রোগী সনাক্ত হয়েছে। কুষ্টিয়া সদর উপজেলায় আক্রান্ত ৩৭ জনের ঠিকানাঃ মিলপাড়া ২ জন, থানাপাড়া ৩ জন, হাউজিং বি-৫৭ ১ জন, পূর্ব মজমপুর ২ জন, কোর্টপাড়া ৩ জন, চৌড়হাস ২ জন, বারখাদা পালপাড়া ১ জন, অগ্রনী ব্যাংক মজমপুর ২ জন, পেয়ারাতলা ১ জন, গোস্বামী. দুর্গাপুর ১ জন, জুগিয়া ১ জন, কলাবাড়িয়া ১ জন, জেলখানা  মোড় ১ জন, করিমপুর ১ জন, কে.জি.এইচ ১ জন, কবুরহাট ১ জন, অগ্রনী ব্যাংক মজমপুর ১ জন, মিনাপাড়া জগতি ১ জন, গোপালপুর কমলাপুর ১ জন, অগ্রণী ব্যাংক বড় বাজার ১ জন, বড় আইলচাড়া ৩ জন, বড় স্টেশন রোড ১ জন, বাবর আলী গেট ১ জন, পুলিশ লাইন কুষ্টিয়া ২ জন, হরিকৃষ্ণপুর ১ জন, মঙ্গলবাড়িয়া ১ জন। দৌলতপুর উপজেলায় আক্রান্ত ৭ জনের ঠিকানাঃ দৌলতপুর ১ জন, মথুরাপুর ১ জন, রামকৃষ্ণপুর ১ জন, দৌলতপুর থানা ৩ জন, আল্লারদর্গা পিয়ারপুর ১ জন। কুমারখালী উপজেলায় আক্রান্ত ৫ জনের ঠিকানাঃ দুর্গাপুর ১ জন, দুর্গাপুর উপজেলা রোড ৩ জন, যদুবয়রা ১ জন। খোকসা উপজেলার আক্রান্ত ৪ জনের ঠিকানাঃ মানিকাট. শিমুলিয়া ১ জন, সোনালী ব্যাংক আকতারপুর ১ জন, ইউ এইচ সি খোকসা ১ জন, খোকসা থানা ১ জন। মিরপুর উপজেলায় আক্রান্ত ৩ জনের ঠিকানাঃ

মিরপুর ২ জন, নয়নপুর. আমলা ১ জন। ভেড়ামারা উপজেলায় আক্রান্ত ১ জনের ঠিকানাঃ নওদাপাড়া। কুষ্টিয়া  জেলা প্রশাসকের পক্ষ থেকে সকলকে সচেতনতা করে বলা  হয়, ঘরের বাহিরে যাওয়ার প্রয়োজন হলে অবশ্যই মাস্ক ব্যবহার করুন। অতি-প্রয়োজনীয় না হলে বাহিরে যাওয়া  থেকে বিরত থাকুন। সামাজিক দুরত্ব মেনে চলুন। অনুগ্রহ করে সতর্ক থাকুন, সাবধানে থাকুন।

অভিন্ন ঐতিহ্য-সংস্কৃতি রক্ষায় ভারত বাংলাদেশের প্রতিশ্র“তিবদ্ধ অংশীদার – রীভা গাঙ্গুলি

ঢাকা অফিস ॥ বাংলাদেশে নিযুক্ত ভারতীয় হাই কমিশনার রীভা গাঙ্গুলি দাশ বলেছেন, অভিন্ন ঐতিহ্য ও সংস্কৃতি সংরক্ষণে ভারত বাংলাদেশের প্রতিশ্র“তিবদ্ধ অংশীদার। নাটোরের জয়কালী মাতার মন্দির উদ্বোধন উপলক্ষে আয়োজিত এক অনুষ্ঠানে তিনি এ কথা বলেন। গতকাল সোমবার ভারতীয় হাই কমিশনার রীভা গাঙ্গুলি দাশ ও বাংলাদেশ সরকারের তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি প্রতিমন্ত্রী জুনায়েদ আহমেদ পলক যৌথভাবে ভার্চুয়াল সভায় নাটোরে জয়কালী মাতার পুনর্নির্মিত মন্দির উদ্বোধন করেন। সংসদ সদস্য মো. শফিকুল ইসলাম এবং নাটোরের মেয়র উমা চৌধুরী জলিও এ ভার্চুয়াল অনুষ্ঠানে অংশগ্রহণ করেন। ২০১৬ সালের ২৩ অক্টোবর নাটোরের লালবাজারে জয়কালী মাতার মন্দিরটি পুনর্নির্মাণের জন্য একটি সমঝোতা স্মারক স্বাক্ষরিত হয়। ভারত সরকারের ৯৭ লাখ (বাংলাদেশি) টাকা অনুদান এবং হাই ইমপ্যাক্ট কমিউনিটি ডেভলপমেন্ট প্রজেক্টস (এইচআইসিডিপি) স্কিমের আওতায় মোট ১.৩৩ কোটি টাকা অর্থায়নে এ নির্মাণ কাজ বাস্তবায়ন করে জয়কালী মাতার মন্দির কমিটি। অনুষ্ঠানে হাই কমিশনার বলেন, ভারতীয় হাই কমিশন নাটোরের জয়কালী মাতার মন্দিরের সংস্কার কাজে সহায়তা করতে পেরে আনন্দিত। এ মন্দিরটি বাংলাদেশের অন্যতম প্রাচীন মন্দির। আমাদের অভিন্ন ঐতিহ্য ও সংস্কৃতি সংরক্ষণে ভারত বাংলাদেশের প্রতিশ্রুতিবদ্ধ অংশীদার। যা আমাদের জনগণের মধ্যকার সম্পর্ককে আরও জোরদার করে। জুনায়েদ আহমেদ পলক বলেন, নাটোরকে উন্নয়নের রোল মডেল হিসেবে গড়ে তুলব। এ উন্নয়নের লক্ষ্যে পথ চলায় ভবিষ্যতেও আমাদের পাশে থাকবে বন্ধুপ্রতিম দেশ ভারত। সফটওয়্যার শিল্পে বাংলাদেশের যে অগ্রগতি, তা কাজে লাগিয়ে অদূর ভবিষ্যতে বাংলাদেশে ভারত তাদের সহযোগিতার ক্ষেত্র আরো প্রসারিত করবে। জয়কালী মন্দিরটি প্রায় ৩০০ বছরের পুরনো এবং বাংলাদেশের নাটোর জেলার অন্যতম প্রাচীন মন্দির। অষ্টাদশ শতাব্দির শুরুর দিকে এ মন্দির নির্মাণ করেন শ্রী দয়ারাম রায় (১৬৮০-১৭৬০), যিনি ছিলেন দিঘাপতিয়া রাজপরিবারের প্রতিষ্ঠাতা ও নাটোরের রানী ভবানীর (১৭১৬-১৭৯৫) প্রভাবশালী দেওয়ান। প্রতিবছর অত্যন্ত উদ্দীপনা এবং উৎসাহের সঙ্গে এ মন্দিরে দুর্গা ও কালীপূজার মতো বিভিন্ন ধর্মীয় উৎসব হয়। মন্দিরের প্রাঙ্গণে শিবমন্দিরও রয়েছে। এ প্রকল্পের বাস্তবায়ন, বাংলাদেশের ইতিহাস, সংস্কৃতি ও পরম্পরাসমূহের প্রাচীন স্মারক ও ঐতিহ্য রক্ষায় ভারতের প্রচেষ্টার একটি চমৎকার উদাহরণ। ভারত সরকারের অনুদানের আওতায় হাই ইমপ্যাক্ট কমিউনিটি ডেভলপমেন্ট প্রজেক্টস (এইচআইসিডিপি), বাংলাদেশের জন্য ভারতের উন্নয়ন সহায়তার একটি সক্রিয় স্তম্ভ গঠন করে, যার দ্বারা স্থানীয় অধিবাসীরা সরাসরি উপকৃত হয় এবং তাদের ওপর ইতিবাচক প্রভাব সৃষ্টি হয়। অতীতে এইচআইডসিডিপির আওতায় রাজশাহী বিভাগের বিভিন্ন প্রকল্পে সহায়তা বৃদ্ধি করা হয়, যার মধ্যে রয়েছে- রামকৃষ্ণ মন্দির ও অন্যান্য অবকাঠামো নির্মাণ, দোতলা আদিবাসী শাগশাইল স্কুল ও নিয়ামতপুর ছাত্রীনিবাস নির্মাণ, রাজশাহী সিটি করপোরেশনে ক্ষুদ্র উন্নয়ন প্রকল্প, শ্রী শ্রী আনন্দময়ী কালীমাতা মন্দির সংস্কার কাজ, মাহিগঞ্জ বালিকা উচ্চবিদ্যালয় ও কলেজের নিচতলা, দ্বিতীয়তলা এবং অন্যান্য অবকাঠামো নির্মাণ ইত্যাদি।

প্রধানমন্ত্রীর কাছে ডা. জাফরুল্লাহর খোলা চিঠি

ঢাকা অফিস ॥ প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার কাছে খোলা চিঠি পাঠিয়েছেন গণস্বাস্থ্যের প্রতিষ্ঠাতা ও ট্রাস্টি ডা. জাফরুল্লাহ চৌধুরী। গতকাল সোমবার প্রধানমন্ত্রী বরাবর এ চিঠি পাঠানো হয়। পরে গণস্বাস্থ্যের জনসংযোগ বিভাগ থেকে চিঠিটি গণমাধ্যমে সরাবরাহ করা হয়। ‘প্রিয় প্রধানমন্ত্রীর কাছে একজন নাগরিকের খোলা চিঠি’ শিরোনামের এ চিঠিতে বলা হয়, অতীতে আপনার সাথে সাক্ষাতের চেষ্টা করে ব্যর্থ হয়ে এই খোলা চিঠি লিখছি। আশা করি প্রধানমন্ত্রীর দপ্তরের কেউ না কেউ আমার এই খোলা চিঠি আপনার নজরে আনবেন এবং আমি একটি প্রাপ্তি স্বীকার পত্র পাব। প্রিয় প্রধানমন্ত্রীর কাছে এটাই একজন নাগরিকের আকাক্সক্ষা। চিঠিতে দেশে চলমান করোনা পরিস্থিতি প্রসঙ্গে বলা হয়, পৃথিবীর কোথাও নিয়ম নেই রোগীর হাসপাতালে ভর্তির জন্য প্রধানমন্ত্রী, স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয় বা স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের অনুমোদন লাগে। কোভিড-১৯ আক্রান্ত হোক অথবা কোভিডমুক্ত বা অন্য কোনো রোগে আক্রান্ত রোগী, হাসপাতালে ভর্তির সিদ্ধান্ত দেন ওই হাসপাতালের পরিচালক, ডিউটিরত চিকিৎসক, নার্স বা ইমার্জেন্সি মেডিকেল অফিসার। কিন্তু বাংলাদেশে কোভিড-১৯ রোগী হাসপাতালে ভর্তি হতে পারবে কিনা, তার সিদ্ধান্ত দেয় স্বাস্থ্য অধিদপ্তর, রোগী বা চিকিৎসক নন। কেন্দ্রীকতার এরূপ নিদর্শন পৃথিবীর অন্য কোথাও নেই। কেন্দ্রীকতা দুর্নীতির সহজ বাহন। ‘হাসপাতাল অনুমোদিত না হবার কারণ’ উপ-শিরোনামে ওই চিঠিতে বলা হয়, বাংলাদেশের অধিকাংশ বেসরকারি হাসপাতালেরই স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের অনুমোদন নেই, এমনকি গণস্বাস্থ্য নগর হাসপাতালের, গণস্বাস্থ্য ডায়ালাইসিস সেন্টারেরও অনুমোদন নেই। আলাদা আলাদা তদবির মানে আলাদা তদবির ব্যয়, আলাদা দরাদরি। হাসপাতাল, ল্যাবরেটরি এবং রোগ নির্ণয় কেন্দ্র অনুমোদনের জন্য বাংলাদেশ সরকারের স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ মন্ত্রণালয় এমন নিয়মাবলী করেছে, যা পূরণ করা প্রায় অসম্ভব। স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয় স্থির করে দেয় কয়টি পায়খানা-প্র¯্রাব খানা থাকবে, কয়জন ডিপ্লোমা নার্স থাকতে হবে। কেবল হাসপাতালের অনুমোদন থাকলে চলবে না, হাসপাতালের প্রত্যেক বিভাগের জন্য আলাদা আলাদা অনুমোদন থাকতে হবে। এ প্রসঙ্গেই প্রধানমন্ত্রীর দৃষ্টি আকর্ষণ করে জাফরুল্লাহ বলেন, অনুগ্রহ করে সরকারি চাঁদা কত বেড়েছে তা লক্ষ্য করুন। হয়রানি ও দুর্নীতি একত্রে চলাফেরা করে। চিঠিতে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে আগামী মাসে গণস্বাস্থ্য কেন্দ্রের করোনা ওয়ার্ড উদ্বোধনের আহ্বান জানিয়ে ডা. জাফরুল্লাহ আরো বলেন, আগামী মাসে নিবিড় পরিচর্যা কেন্দ্রের (আইসিইউ) সুবিধা নিয়ে শীতাতপ নিয়ন্ত্রিত ও কেন্দ্রীয় অক্সিজেন সুবিধাসমেত করোনা সাধারণ ওয়ার্ড চালু করবে ধানমন্ডিস্থ গণস্বাস্থ্য কেন্দ্র। এখানে সর্বসাকুল্যে রোগীর দৈনিক খরচ পড়বে অনধিক ৩ হাজার টাকা। আপনি কি এই অত্যাধুনিক শীতাতপ নিয়ন্ত্রিত ও কেন্দ্রীয় অক্সিজেন সরবরাহের সুবিধাসমেত জেনারেল ওয়ার্ডের উদ্বোধন করবেন?

ঈদযাত্রা নির্বিঘ্নে করার আহ্বান সেতুমন্ত্রীর

ঢাকা অফিস ॥ ঈদযাত্রা নির্বিঘœ করতে সংশ্লিষ্টদের নির্দেশ দিয়েছেন সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী এবং আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের। এজন্য প্রয়োজনীয় সব প্রস্তুতি রাখার আহ্বান জানান তিনি। মন্ত্রী ফ্লাইওভারসহ মহাসড়কে চলমান অন্যান্য উন্নয়নকাজ সাময়িক বন্ধ রাখতে আবারও নির্দেশ দেন। গতকাল সোমবার নিজের সরকারি বাসভবন থেকে এক ভিডিও কনফারেন্সে মন্ত্রী এ নির্দেশ দেন। ঈদকে সামনে রেখে গাজীপুরের সড়ক বিভাগ ও আইনপ্রয়োগকারী সংস্থার সঙ্গে মত বিনিময় করেন তিনি। ওবায়দুল কাদের বলেন, ইতোমধ্যেই উন্নয়ন কাজগুলো সাময়িক বন্ধ করার জন্য সংশ্লিষ্টদের সঙ্গে কথা বলেছি। সমন্বিতভাবে সবাইকে ঈদযাত্রা নির্বিঘœ করার জন্য কাজ করতে হবে। সংশ্লিষ্ট সব পক্ষকে এ বিষয়ে কাজ করার আহ্বান জানান মন্ত্রী। তিনি বলেন, টঙ্গী থেকে গাজীপুর চৌরাস্তা এবং বাইপাস, নবীনগর-চন্দ্রা,ভোগড়া-চন্দ্রা-কালিয়াকৈর- এলেঙ্গা করিডোর পর্যন্ত ট্রাফিক ব্যবস্থাপনা যথাযথ রাখতে হবে। এতে ঘরমুখো মানুষের ভোগান্তি কম হবে। ঈদের আগের দুই দিন গাজীপুর এলাকার গার্মেন্টসগুলো ছুটি হওয়ায় যাত্রীদের চাপ বেড়ে যায়। তাই বিজিএমইএ এর সঙ্গে পরিকল্পনা করে বাড়তি চাপ মোকাবিলার প্রস্তুতি নিতে হবে। মন্ত্রী হাইওয়ে পুলিশের উদ্দেশে বলেন, রাস্তায় হঠাৎ গাড়ি বিকল হয়ে যেতে পারে। বৃষ্টি হচ্ছে। তাতে সমস্যা হতে পারে। যানজট হতে পারে। তাই রেকারসহ অন্যান্য প্রস্তুতি নিয়ে রাখতে হবে। ঈদের আগে টেম্পু, রিকশা-ভ্যান, অটোরিকশা কোনোভাবেই চলতে দেওয়া যাবে না। মহাসড়কে নজরদারি বাড়াতে হবে। ঢাকার প্রবেশ এবং বের হওয়ার পথগুলোতে ট্রাফিক ব্যবস্থা নিশ্চিত করতে হবে। সতর্কতার সঙ্গে গাড়ি চালানোর জন্য পরিবহন মালিক-শ্রমিকদেরও আহ্বান জানান তিনি কাদের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নির্দেশনা অনুযায়ী স্বাস্থ্যবিধি মেনে ঈদযাত্রা নিশ্চিত করার আহ্বান জানান। তিনি বলেন, প্রধানমন্ত্রী এটা সার্বক্ষণিক মনিটরিং করছেন। আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার আহ্বানের ধারাবাহিকতায় আবারও বন্যার্তদের পাশে দাঁড়ানোর জন্য নেতাকর্মীদের প্রতি আহ্বান জানান। প্রশাসনের সঙ্গে সমন্বয় করে কাজ করতে হবে উল্লেখ করে তিনি বলেন, প্রধানমন্ত্রী কাজ সুষ্ঠুভাবে করার জন্য সমন্বয় কমিটি করারও নির্দেশ দিয়েছেন।

২ আগস্ট দেশে ফিরবেন অর্থমন্ত্রী

ঢাকা অফিস ॥ আগামী ২ আগস্ট লন্ডন থেকে দেশে ফিরবেন অর্থমন্ত্রী আ হ ম মুস্তফা কামাল। ২০২০-২১ অর্থবছরের বাজেট পাসের পরদিন ১ জুলাই চোখের ফলোআপ চিকিৎসা নিতে লন্ডন যান তিনি। অর্থ মন্ত্রণালয়ের এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য জানানো হয়েছে। গত রোববার রাতে পাঠানো সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে তিনি বলেন, করোনা মহামারিতে লন্ডন পৌঁছানোর পর অর্থমন্ত্রীকে সেখানে ১৪ দিন হোম কোয়ারেন্টিনে থাকতে হয়েছে। এতে লন্ডন পৌঁছানোর ১৪ দিন পরে তিনি চিকিৎসা কার্যক্রম শুরু করেন। আর এ কারণেই চিকিৎসায় কিছুটা বেশি সময় দেশের বাইরে থাকতে বাধ্য হয়েছেন। এতে আরও বলা হয়, অর্থমন্ত্রী আইসিসির সভাপতি থাকাকালীন আইসিসির তত্ত্বাবধানে লন্ডনে যেসব চিকিৎসকদের পরামর্শ নিতেন পরেও তিনি সেসব চিকিৎসকদের পরামর্শই নিয়মিত নিয়ে আসছেন। তাদের পরামর্শ অনুযায়ী ৩০ জুন চলতি অর্থবছরের বাজেট পাস হওয়ার আগেই তার লন্ডন যাওয়ার কথা ছিল। তবে করোনা পরিস্থিতির অবনতি এবং ২০২০-২১ অর্থবছরের বাজেট তৈরি, সংসদে উপস্থাপন ও পাস করার কাজে ব্যস্ত থাকায় ওই সময়ে তিনি লন্ডনে যেতে পারেননি। বাজেট পাস করিয়ে তবেই ফলোআপ চিকিৎসার জন্য লন্ডনে যান তিনি। চিকিৎসার সেই ফলোআপ শেষ করেই আগামী ২ আগস্ট দেশে ফিরছেন অর্থমন্ত্রী।

চীনা টিকার ট্রায়াল নিয়ে কিছু জানায়নি স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয় – মোমেন

ঢাকা অফিস ॥ করোনা প্রতিরোধে চীনের সিনোভ্যাক ভ্যাকসিনের তৃতীয় ধাপের ট্রায়ালের বিষয়ে স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয় এখনো পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়কে কিছু না জানায়নি বলে মন্তব্য করেছেন পররাষ্ট্রমন্ত্রী ড. এ কে আবদুল মোমেন। গতকাল সোমবার রাজধানীর রেল ভবনে এক অনুষ্ঠান শেষে সাংবাদিকদের মুখোমুখি হয়ে তিনি এ মন্তব্য করেন। বাংলাদেশের কাছে ১০টি রেল ইঞ্জিন হস্তান্তর করে ভারত। এই অনুষ্ঠানে যোগ দেন পররাষ্ট্রমন্ত্রী ড. মোমেন। অনুষ্ঠান শেষে সাংবাদিকদের মুখোমুখি হয়ে তিনি বলেন, চীনা ভ্যাকসিনের তৃতীয় ধাপের ট্রায়ালের বিষয়ে স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয় এখনো পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়কে কিছু জানায়নি। অপর এক প্রশ্নের উত্তরে তিনি বলেন, মালয়েশিয়ার সঙ্গে সুসম্পর্ক বজায় রেখেই সে দেশে আটক বাংলাদেশি যুবক রায়হানকে সাহায্য করবে সরকার। বাংলাদেশে চীনা ভ্যাকসিনের তৃতীয় ধাপের ট্রায়াল খুব শিগগির শুরু হবে বলে আশা করা হচ্ছে। দেশের সাতটি হাসপাতালের দুই হাজার ১০০ স্বাস্থ্যকর্মীর উপর এই ট্রায়াল হবে। তবে এই ভ্যাকসিনের অনুমোদন কোন মন্ত্রণালয় দেবে তা নিয়ে জটিলতা তৈরি হয়েছে।

করোনাভাইরাসে ২৪ ঘণ্টায় ৩৭ মৃত্যু, শনাক্ত ২৭৭২

ঢাকা অফিস ॥ দেশে দীর্ঘ থেকে দীর্ঘতর হচ্ছে করোনাভাইরাসে (কোভিড-১৯) মৃত্যুর তালিকা। গত ২৪ ঘণ্টায় এ ভাইরাস কেড়ে নিয়েছে আরও ৩৭ জনের প্রাণ। এ নিয়ে ভাইরাসটিতে মোট মারা গেলেন দুই হাজার ৯৬৫ জন। গত ২৪ ঘণ্টায় করোনা মিলেছে আরও দুই হাজার ৭৭২ জনের মধ্যে। ফলে মোট শনাক্ত রোগীর সংখ্যা এখন দুই লাখ ২৬ হাজার ২২৫। গতকাল সোমবার দুপুরে স্বাস্থ্য অধিদফতরের করোনাভাইরাস বিষয়ক দৈনন্দিন বুলেটিনে এ তথ্য জানান অধিদফতরের অতিরিক্ত মহাপরিচালক অধ্যাপক ডা. নাসিমা সুলতানা। তিনি পিসিআর-ল্যাবরেটরিতে নমুনা পরীক্ষার তথ্য তুলে ধরে জানান, করোনাভাইরাস শনাক্তে গত ২৪ ঘণ্টায় ১২ হাজার ৫৪৪টি নমুনা সংগ্রহ করা হয়। আগের কিছু মিলিয়ে পরীক্ষা করা হয় ১২ হাজার ৮৫৯টি নমুনা। এ নিয়ে মোট নমুনা পরীক্ষা করা হলো ১১ লাখ ২৪ হাজার ৪১৭টি। নতুন পরীক্ষায় করোনা মিলেছে দুই হাজার ৭৭২ জনের মধ্যে। এ নিয়ে মোট আক্রান্তের সংখ্যা দাঁড়াল দুই লাখ ২৬ হাজার ২২৫ জনে। আক্রান্তদের মধ্যে গত ২৪ ঘণ্টায় মৃত্যু হয়েছে আরও ৩৭ জনের। ফলে ভাইরাসটিতে মোট মারা গেলেন দুই হাজার ৯৬৫ জন। গত ২৪ ঘণ্টায় সুস্থ হয়েছেন আরও এক হাজার ৮০১ জন। এ নিয়ে মোট সুস্থ রোগীর সংখ্যা দাঁড়াল এক লাখ ২৫ হাজার ৬৮৩ জনে। গত ২৪ ঘণ্টায় যারা মারা গেছেন তাদের পুরুষ ২৬ জন, নারী ১১ জন। এদের মধ্যে ২০ বছরের বেশি বয়সী একজন, ত্রিশোর্ধ্ব একজন, চল্লিশোর্ধ্ব সাতজন, পঞ্চাশোর্ধ্ব সাতজন, ষাটোর্ধ্ব ১২ জন, সত্তরোর্ধ্ব আটজন এবং ৮০ বছরের বেশি বয়সী একজন রয়েছেন। তাদের মধ্যে ঢাকা বিভাগের ছিলেন ২৪ জন, চট্টগ্রাম বিভাগের পাঁচজন, রংপুর বিভাগের তিনজন, খুলনা বিভাগের দুইজন, বরিশাল বিভাগের দুইজন এবং ময়মনসিংহ বিভাগের একজন ছিলেন। গত রোববারের বুলেটিনে জানানো হয়, করোনাভাইরাসে গত ২৪ ঘণ্টায় আরও ৫৪ জন মারা গেছেন। ১০ হাজার ৭৮টি নমুনা পরীক্ষায় করোনা শনাক্ত হয় আরও দুই হাজার ২৭৫ জনের দেহে। সে হিসাবে আগের ২৪ ঘণ্টার তুলনায় গত ২৪ ঘণ্টায় মৃত্যু কমলেও বেড়েছে রোগী শনাক্তের সংখ্যা। দেশে একদিনে সর্বোচ্চ মৃত্যুর রেকর্ড আছে ৬৪ জনের। সে তথ্য জানানো হয়, ৩০ জুনের বুলেটিনে। সর্বোচ্চ শনাক্তের রেকর্ড চার হাজার ১৯ জনের, যা জানানো হয় ২ জুলাইয়ের বুলেটিনে। গতকাল সোমবারের বুলেটিনে জানানো হয়, গত ২৪ ঘণ্টায় নমুনা পরীক্ষার তুলনায় রোগী শনাক্তের হার ২১ দশমিক ৫৬ শতাংশ। এ পর্যন্ত নমুনা পরীক্ষার তুলনায় রোগী শনাক্তের হার ২০ দশমিক ১২ শতাংশ। আর রোগী শনাক্ত তুলনায় সুস্থতার হার ৫৫ দশমিক ৫৬ শতাংশ এবং মৃত্যুর হার ১ দশমিক ৩১ শতাংশ। বুলেটিনে ডা. নাসিমা সুলতানা জানান, ২০২০ সালের আগে সারা দেশের বিভিন্ন হাসপাতালে লিকুইড অক্সিজেন ট্যাঙ্ক ছিল মাত্র ২২টি। করোনা সংক্রমণের পর সম্প্রতি স্থাপিত হয়েছে আরও আটটি লিকুইড অক্সিজেন ট্যাঙ্ক। বর্তমানে আরও ৪৩টি লিকুইড অক্সিজেন ট্যাঙ্ক নির্মাণের কাজ চলমান রয়েছে। দেশের লিকুইড অক্সিজেন ট্যাঙ্কের তথ্য তুলে ধরে নাসিমা সুলতানা বলেন, ২০২০ সালের আগে বিভিন্ন হাসপাতালে স্থাপিত লিকুইড অক্সিজেন ট্যাঙ্ক ছিল ২২টি। সম্প্রতি ন্যাশনাল ইলেকট্রো-মেডিকেল ইক্যুইপমেন্ট মেইনটেন্যান্স ওয়ার্কশপ অ্যান্ড ট্রেনিং সেন্টার (নিমিউ) ৬টি লিকুইড অক্সিজেন ট্যাঙ্ক স্থাপন করেছে। স্বাস্থ্য প্রকৌশল অধিদফতরও সম্প্রতি একটি লিকুইড অক্সিজেন ট্যাংক স্থাপন করে। নিজস্ব উদ্যোগে সরকারি হাসপাতালে স্থাপিত অক্সিজেন প্ল্যান্ট বা লিকুইড অক্সিজেন ট্যাঙ্ক স্থাপন করা হয়েছে একটি। নিমিউ’র অধীনে লিকুইড অক্সিজেন ট্যাঙ্ক নির্মাণের কাজ চলমান ২০টি প্রতিষ্ঠানে। স্বাস্থ্য প্রকৌশল অধিদফতরের মাধ্যমে ২৩টি প্রতিষ্ঠানে লিকুইড অক্সিজেন ট্যাঙ্ক নির্মাণের কাজ চলমান রয়েছে। সারা দেশে অক্সিজেন সিলিন্ডারের সংখ্যা ১২ হাজার ৩৪১টি। হাই ফ্লো নেজাল ক্যানোলার সংখ্যা ৩০৫টি। আর অক্সিজেন কনসেনট্রেটরের সংখ্যা ১১২টি বলেও জানিয়েছেন নাসিমা সুলতানা। করোনাভাইরাস থেকে সুরক্ষিত ও সুস্থ থাকতে বরাবরের মতো সবাইকে স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলার আহ্বান জানানো হয় বুলেটিনে। চীনের উহান শহর থেকে ছড়ানো করোনাভাইরাস মৃত্যুপুরীতে পরিণত করেছে গোটা বিশ্বকে। গত ডিসেম্বরের পর থেকে এখন পর্যন্ত ভাইরাসটিতে আক্রান্তের সংখ্যা এক কোটি ৬৪ লাখ ২৪ হাজার ছাড়িয়েছে। মৃতের সংখ্যা ছয় লাখ ৫২ হাজারের বেশি। তবে সুস্থ রোগীর সংখ্যা এক কোটি ৫২ হাজার ছাড়িয়েছে। বাংলাদেশে করোনাভাইরাস প্রথম শনাক্ত হয় গত ৮ মার্চ। আর এতে প্রথম মৃত্যু হয় ১৮ মার্চ।

‘ঢাকা ইয়ূথ ক্যাপিটাল এর ভার্চ্যুয়াল সম্মেলনে প্রধনমন্ত্রী শেখ হাসিনা

উদ্ভাবনী চিন্তা-সৃজনশীলতা নিয়ে তরুণদের এগিয়ে আসতে হবে  

ঢাকা অফিস ॥ করোনা ভাইরাসের মহামারিকালীন এবং পরবর্তীকালে টেকসই ভবিষ্যৎ বিনির্মাণে সৃজনশীল ধারণা এবং উদ্ভাবনী চিন্তা নিয়ে সিদ্ধান্ত গ্রহণ প্রক্রিয়ায় সম্পৃক্ত হতে যুবকদের প্রতি আহ্বান জানিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। প্রধানমন্ত্রী বলেন, কোভিড-১৯ কর্মক্ষেত্রে গতি এবং পরিমাণ উভয়টিই অত্যাবশ্যকীয় করে তুলেছে। গতকাল সোমবার ‘ঢাকা ইয়ূথ ক্যাপিটাল ২০২০’ এর ভার্চ্যুয়াল সম্মেলনে ভিডিও বার্তায় এ কথা বলেন প্রধানমন্ত্রী। এই মেগা ইভেন্টের থিম ‘একটি স্থিতিস্থাপক ভবিষ্যতের জন্য: সমতা এবং সমৃদ্ধি’। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেন, মানুষ চাইলে অর্থনৈতিক এবং নির্বাহী নিয়ন্ত্রণের ক্ষেত্রে অনড়তা বেছে নিতে পারে। আবার অপ্রতিরোধ্য বাধা অতিক্রম করতে নতুন ধারণা, নমনীয়তা এবং গতিশীলতা বেছে নিতে পারে। এ ক্ষেত্রে যুবকদের তাদের ভবিষ্য নির্মাণে ধারণা এবং উদ্ভাবনী শক্তি নিয়ে সিদ্ধান্ত গ্রহণে অংশীদার হওয়ার বিরাট সুযোগ রয়েছে। তিনি বলেন, কোভিড-১৯ মহামারি সরকার, বেসরকারি খাত, আন্তর্জাতিক সম্প্রদায় এবং নেতাদের কাছে সর্বত্র বিশেষ চাহিদা তৈরি করেছে। এই সংকটে কী ধরনের নেতৃত্ব প্রয়োজন, তা পূর্ব নির্ধারিত নয়। কিন্তু এ প্রক্রিয়ার সঙ্গে মানুষের মাইন্ডসেট এবং আচরণ সম্পৃক্ত। করোনা সংকট মোকাবিলা এবং ক্ষতিগ্রস্ত মানুষের কষ্ট লাঘবে বাংলাদেশ সরকারের ১২.১ বিলিয়ন ডলারের প্যাকেজ ঘোষণার কথা উল্লেখ করেন প্রধানমন্ত্রী। ভার্চ্যুয়াল এই অনুষ্ঠানে অন্যান্যের মধ্যে বক্তব্য রাখেন, অর্গানাইজেশন অব ইসলামিক কো-অপারেশনের (ওআইসি) মহাসচিব ইউসেফ বিন আহমাদ আল-ওথাইমিন, পররাষ্ট্রমন্ত্রী একে আবদুল মোমেন, যুব ও ক্রীড়া প্রতিমন্ত্রী জাহিদ আহসান রাসেল, কাতারের ক্রীড়া ও সংস্কৃতি বিষয়ক মন্ত্রী সালেহ বিন গানেম আল আলী, আজারবাইজানের যুব ও ক্রীড়া মন্ত্রী আজাদ রহিমভ, ইসলামিক কো-অপারেশন ইয়ূথ ফোরামের (আইসিওয়াইএফ) প্রেসিডেন্ট তাহা আইয়ান।

সজীব ওয়াজেদ জয়ের জন্মদিনের শুভেচ্ছায় ‘ইন্না-লিল্লাহ ওয়া ইন্না ইলাহি রাজিউন’ মন্তব্য করায়

ইবি উপ-রেজিস্ট্রার হান্নানের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিতে কর্মকর্তা সমিতির লিখিত আবেদন

নিজ সংবাদ ॥ জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের দৌহিত্র, প্রধানমন্ত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনার একমাত্র পুত্র এবং তথ্য ও প্রযুক্তি বিষয়ক উপদেষ্টা সজীব ওয়াজেদ জয়ের জন্মদিন উপলক্ষ্যে খসরু মুরতাজা নামের একটি আইডিতে পোষ্ট করা জন্মদিনের শুভেচ্ছায় ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয়ের রেজিস্ট্রার অফিসের উপ-রেজিস্ট্রার মোঃ আব্দুল হান্নান  ‘ইন্না-লিল্লাহ ওয়া ইন্না ইলাহি রাজিউন’ মন্তব্য করায় তার বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণের দাবি করেছে ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয় কর্মকর্তা সমিতি। এ বিষয়ে ২৭ জুলাই সমিতির পক্ষ থেকে রেজিস্ট্রার (ভারঃ) নিকট একটি লিখিত আবেদন দেয়া হয়। আবেদনে উল্লেখ করা হয় যে, সজীব ওয়াজেদ জয়ের জন্মদিন উপলক্ষ্যে খসরু মুরতাজা  নামের একটি আইডিতে পোষ্ট করা জন্মদিনের শুভেচ্ছায় সমাজের বিভিন্ন ব্যক্তি বিভিন্ন ভাষায় সজীব ওয়াজেদ জয়কে অভিনন্দন জানিয়ে মন্তব্য করলেও ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয়ের রেজিস্ট্রার অফিসের উপ-রেজিস্ট্রার মোঃ আব্দুল হান্নান ‘ইন্না-লিল্লাহ ওয়া ইন্না ইলাহি রাজিউন’ মন্তব্য করেন।  যাহা অত্যন্ত দুঃখজনক এবং সজীব ওয়াজেদ জয়ের জন্য হুমকি স্বরুপ। আমরা মনে করি, সারা বাংলাদেশে দলের মধ্যে ঘাপটি মেরে খন্দকার মুশতাকদের উত্তরসূরীরা লুকিয়ে আছে, তাদেরকে অঙ্কুরেই বিনষ্ট করতে হবে। লিখিত আবেদনে, অনতিবিলম্বে বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রচলিত নিয়ম অনুযায়ী উপ- রেজিস্ট্রার মোঃ আব্দুল হান্নানের বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণ করতঃ বিশ্ববিদ্যালয়ের পক্ষ থেকে দেশের প্রচলিত আইনে মামলা করতে দাবি জানানো হয়।

আলহাজ্ব ওয়ালিউল বারী চৌধুরীর মৃত্যুতে কুষ্টিয়া পৌর মেয়র আনোয়ার আলীর শোক

কুষ্টিয়ার প্রবীণ সাংবাদিক, সাপ্তাহিক ইস্পাত পত্রিকার সম্পাদক আলহাজ্ব ওয়ালিউল বারী চৌধুরীর মৃত্যুতে গভীর শোক ও দুঃখ প্রকাশ করে শোকবার্তা প্রেরণ করেছেন কুষ্টিয়া পৌরসভার মেয়র আনোয়ার আলী। শোকবার্তায় তিনি বলেন, আলহাজ্ব ওয়ালিউল বারী চৌধুরীর মৃত্যুতে আমরা সাংবাদিক জগতের একজন অভিভাবককে হারালাম। তাঁর শুন্যতা অন্যকারো দ্বারা পূরণ হওয়ার নয়। তিনি মরহুমের আত্মার মাগফিরাত কামনা করেন এবং শোকাহত পরিবারের প্রতি সমবেদনা জানান। সংবাদ বিজ্ঞপ্তি

কুষ্টিয়ায় অস্ত্র ও গুলিসহ সম্রাট সহ ২ জন গ্রেফতার

নিজ সংবাদ ॥ গত ২৭ জুলাই ভোর ৪ ঘটিকার দিকে র‌্যাব-১২ এর একটি বিশেষ আভিযানিক দল গোপন সংবাদের ভিত্তিত্বে কুষ্টিয়া সদর থানাধীন বড় আইলচরা সাকিনস্থ এলাকা হতে অস্ত্রধারী সন্ত্রাসী জেড এম স¤্রাট (৩১), পিতা- আমিনুল ইসলাম, সাং- রেনউইক কমলাপুর,থানা-কুষ্টিয়া সদর, জেলা- কুষ্টিয়া এবং দ্বীন ইসলাস রাসেল (২৮), পিতা- মৃত গোলাম রসুল, সাং-মজমপুর, থানা-কুষ্টিয়া সদর ,জেলা- কুষ্টিয়াদ্বয়কে গ্রেফতার করা হয়। গ্রেফতারপূর্বক স¤্রাটের নিকট হতে অবৈধ অস্ত্র ৩টি বিদেশী পিস্তল, ৩টি ম্যাগাজিন, ৯ রাউন্ড গুলি ও ১টি প্রাইভেটকার উদ্ধার করা হয়। র‌্যাবের দেয়া সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে উল্লেখ করা হয় ধৃত আসামী স¤্রাট গনমুক্তি ফৌজ এর অন্যতম নেতা মুকুলের শীর্ষসহযোগী। স¤্রাট দীর্ঘদিন যাবত অবৈধ অস্ত্র বহন করে কুষ্টিয়ায় টেন্ডারবাজিসহ বিভিন্ন সন্ত্রাসীমূলক কার্যক্রম পরিচালনা করে আসছিল। এ সংক্রান্তে ধৃত আসামীদের বিরুদ্ধে কুষ্টিয়া জেলার সদর থানায় মামলা রুজু করার প্রস্তুতি চলছে।

কুষ্টিয়ায় স্বেচ্ছাসেবকদের সাথে ভিডিও কানফারেন্সে ‘পর্যালোচনা সভায়’ এমপি হানিফ

ছাত্রলীগের নেতাকর্মীদের কর্মকান্ড প্রশংসার দাবী রাখে

নিজ সংবাদ ॥ বাংলাদেশ আওয়ামীলীগের যুগ্ম সাধারন সম্পাদক ও কুষ্টিয়া সদর আসনের সংসদ সদস্য মাহবুবউল আলম হানিফ বলেছেন- ছাত্রলীগের ঐতিহ্য ধরে রাখতে ছাত্রলীগের নেতাকর্মীদের আরো দায়িত্বশীলতার পরিচয় দিতে হবে। করোনা মুহুর্তে কুষ্টিয়ায় ছাত্রলীগের নেতাকর্মীরা যেভাবে কাজ করে যাচ্ছেন তা প্রশংসার দাবী রাখে। গতকাল সোমবার সকালে কুষ্টিয়া সদর উপজেলা মিলনায়তনে কোভিড ১৯ আক্রান্ত রোগীদের প্রাথমিক স্বাস্থ্য পরামর্শ ও দেখভাল করার জন্য স্বেচ্ছাসেবকদের সাথে ভিডিও কানফারেন্সে ‘পর্যালোচনা সভায়’ প্রধান অতিথির বক্তব্যকালে তিনি একথা বলেন। কুষ্টিয়ার জেলা প্রশাসক মো, আসলাম হোসেনের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি হিসেবে ভার্চুয়াল ভিডিও কনফারেন্সে যোগ দেন পুলিশ সুপার এস.এম তানভীর আরাফাত, জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান হাজী রবিউল ইসলাম, সদর উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান আতাউর রহমান আতা, সদর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা জুবায়ের হোসেন চৌধুরী। অনুষ্ঠানে উপস্থিত থেকে বক্তব্য রাখেন কোভিড-১৯ সদর উপজেলা প্রতিরোধ কমিটির সদস্য সচিব ডাঃ সোনিয়া কাউকাইন, সদর উপজেলা আওয়ামীলীগের সাধারন সম্পাদক রেজাউল করিম, কমিশনার মীর রেজাউল ইসলাম বাবু ও জেলা ছাত্রলীগের সাধারন সম্পাদক সাদ আহমেদ।

এসময় প্রধান অতিথি মাহবুবউল আলম হানিফ এমপি বলেন, ছাত্রলীগের সমন্বয়ে গড়ে উঠা স্বেচ্ছাসেবকেরা নিজেদের জীবনের ঝুঁকি নিয়ে করোনা রোগী এবং তাদের পরিবারের প্রতি যে সেবা প্রদান করে যাচ্ছেন তা ইতিবাচক। ছাত্রলীগের নেতাকর্মীরা দায়িত্বশীলতার সাথে করোনা মোকাবিলায় যে কাজ করছেন তা অব্যাহত রাখতে হবে। হানিফ বলেন, আমি ব্যক্তিগতভাবে ছাত্রলীগের এই স্বেচ্ছাসেবক দলের সদস্যদের কাজে সন্তুষ্ট। আশা করবো করোনার বাকী দিনগুলোতে এই সেবাকে ধরে রাখতে হবে। আসন্ন ঈদুল আজহাকে কেন্দ্র করে আরো দায়িত্বশীরতার প্রমান রাখতে হবে। তিনি সকলকে করোনা মোকাবিলায় আরো সচেতন হওয়ার আহবান জানিয়ে বলেন, বৈশ্বিক করোনা মোকবিলায় সরকারকে সর্বত্র সহযোগিতা দিতে কাজ করতে হবে। জেলা প্রশাসন ও পুলিশ প্রশাসনের বিভিন্ন কর্মকান্ডে তিনি প্রশংসা করে বলেন, সকলের সামগ্রীক সহযোগিতায় করোনাকালীন আপদ থেকে মহান সৃষ্টিকর্তা আমাদের সকলকে একদিন ভাল দিন দেখাবেন। সভাপতির বক্তব্যে জেলা প্রশাসক মোঃ আসলাম হোসেন বলেন- করোনা পরিস্থিতিতে কুষ্টিয়া ভয়াবহ ঝুঁকিতে রয়েছে। সরকারী নির্দেশনা মেনে চলা এবং সজাগ ও সচেতনতার বিকল্প নেই। আমাদের সকলকে আন্ততরিক হতে হবে এবং সুন্দর মানষিকতার পরিচয় দিতে হবে। তিনি ছাত্রলীগের স্বেচ্ছাসেবকদের কর্মকান্ডে প্রশংসা করে বলেন, আপনাদের বিনয়ী হতে হবে। করোনা রোগী এবং তাদের পরিবারের সদস্যদের নিজ গুনে ভাল ব্যবহারের মাধ্যমে তাদের মনের কুঠিরে পৌছতে হবে। আশা করি বাকী দিন গুলোতে কুষ্টিয়ার পরিস্থিতির উন্নতি হবে। তিনি আসন্ন ঈদে দেশের বিভিন্ন এলাকা থেকে আসা মানুষগুলোর প্রতি বিশেষ খেয়াল রাখার আহবান জানান।

হাজী রবিউল ইসলাম বলেন, করোনা মোকাবিলায় ছাত্রলীগের স্বেচ্ছাসেবক টিমের সদস্যরা দৃষ্টান্ত রেখে যাচ্ছেন। তাদের কর্মকান্ডে ইতিবাচক ফল পাওয়া যাচ্ছে। আগামীতে এই ধারবাহিকতা অব্যাহত থাকবে বলে আশা রাখি। পুলিশ সুপার এস,এম তানভীর আরাফাত বলেন, নিজেদের উজাড় করে দিয়ে স্বেচ্ছাসেবকেরা করোনা কালীন পরিশ্রম করে যাচ্ছে যা ইতিবাচক। কোরাবানীর মুহুর্তে এই দলকে আরো দায়িত্বশীলতার পরিচয় দিতে হবে। তিনি বলেন, জেলার সামগ্রীক আইন শৃংখলা পরিস্থিতি ভাল। সকলের সহযোগিতায় এটা সম্ভব হয়েছে বাকী দিন গুলোতে আমাদের আরো বেশি সজাগ থাকতে হবে। সদর উপজেলা চেয়ারম্যান আতাউর রহমান আতা বলেন, ছাত্রলীগকে নিয়ে অনেকে বাজে মন্তব্য করে। কিন্তু ছাত্রলীগ সব সময় দেশের ক্রান্তিলগ্নে যে ভূমিকা রেখে আসছে তা আজো অব্যাহত আছে। যার প্রকৃষ্ট উদাহরন কুষ্টিয়া জেলা ছাত্রলীগ। করোনা কালীন ছাত্রলীগের স্বেচ্ছাসেবকদলের কর্মকান্ডে আমি আন্তরিকভাবে খুশি। আমার সর্বাত্বক সহযোগিতা এবং ভালবাসা থাকবে এই দলের প্রতি। আগামী ঈদে তারা আরো বেশি দায়িত্বশীলতার পরিচয় দেবে বলে আশা রাখি। তিনি মানুষের প্রতি ভালবাসা এবং সরকারের দেয়া প্রতিশ্র“তি বাস্তবায়নে ছাত্রলীগের নেতাকর্মীদের কর্মকান্ডকে অব্যাহত রাখার আহবান জানিয়ে বলেন, সেবার মাধ্যমে মহান সৃষ্টিকর্তাকে খুশি করা যায়। মানুষ মানুষেরই জন্য। মানুষের কল্যানে কাজ করার প্রধান উদ্দেশ্যে হতে হবে আল্লাহকে খুশি করা। আসন্ন ঈদে কুষ্টিয়ার বিভিন্ন কোরবানীর হাটে ছাত্রলীগের নেতাকর্মীরা বিনামুল্যে মাস্ক বিতরন এবং সচেতনতা সৃষ্টির লক্ষে যে উদ্যোগ গ্রহন করবে তাতে  আমার সর্বাত্বক সহযোগিতা থাকবে।

সদর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা জুবায়ের হোসেন চৌধুরী বলেন- রাষ্ট্রের কাজের জন্য নিঃস্বার্থভাবে স্বেচ্ছাসেবক টিমের ছেলেরা যে কাজ করছেন তাতে আমি দারুনভাবে খুশি। কাজের মাধ্যমে মানুষের হৃদয়ে স্থান করে নেয়ার সুযোগ সকলের ভাগ্যে জোটেনা তাই বিপদকালীন মানুষের পাশে থাকাটা সম্মানের বিষয়।  কোরবানীর হাটগুলোতে ফ্রি মাস্ক বিতরন কাজে ছাত্রলীগের ছেলেরা কাজ করলে আমরা অনেক উপকৃত হতে পারবো বলে আশা রাখি। ছাত্রলীগের সাধারন সম্পাদক সাদ আহমেদ বলেন- করোনার শুরু থেকেই আমি এবং আমার টিমের ছেলেরা কাজ করে যাচ্ছেন। আমি তাদের সহযোগিতা পেয়ে নিজেকে গর্বিত মনে করছি। কোরবানীর হাটের বাকী দিন গুলোতে সদর উপজেলার সকল হাটে জনসাধারনের মাঝে ফ্রি মাস্ক বিতরনের বিষয়ে আমরা কাজ করে যাবো তাতে সকলের সহযোগিতা কামনা করছি। এসময় কুষ্টিয়া উন্নয়ন পরিষদের সাধারন সম্পাদক সাইফুদ্দৌলা তরুনসহ ছাত্রলীগের ৪২জন স্বেচ্ছাসেবক উপস্থিত ছিলেন।

কুষ্টিয়ায় নতুন করে আরো ৮ জন করোনা রোগী সনাক্ত

নিজ সংবাদ ॥ কুষ্টিয়ায় নতুন করে আরো ৮ জন করোনা রোগী সনাক্ত হয়েছে। গতকাল সোমবার রাতে কুষ্টিয়া জেলা প্রশাসকের পক্ষ থেকে এ তথ্য নিশ্চিত করা হয়েছে। কুষ্টিয়া মেডিকেল কলেজের বরাত দিয়ে জেলা প্রশাসকের পক্ষ থেকে জানানো হয়, পিসিআর ল্যাবে ২৭ জুলাই মোট ২৮২ টি স্যাম্পলের নমুুনা পরীক্ষা করা হয়। এর মধ্যে কুষ্টিয়া ৫৫, চুয়াডাঙ্গা ৯৪, ঝিনাইদহ ৭৭, মেহেরপুর ১৫ ও নড়াইল এর ৪১ নমুনা ছিলো। তাতে কুষ্টিয়ায় নতুন করে আরো ৮ জন করোনা  রোগী সনাক্ত হয়। এর মধ্যে কুষ্টিয়া জেলার সদর উপজেলার ২ জন, দৌলতপুর উপজেলায় ২ জন, মিরপুর উপজেলায় ১ জন, খোকসা উপজেলার ২ জন ও  ভেড়ামারা উপজেলার ১ জন। কুষ্টিয়া সদর উপজেলায় আক্রান্ত ২ জনের ঠিকানাঃ  কে. জি. এইচ ১ জন  ও কবুরহাট জগতি ১ জন। দৌলতপুর উপজেলায় আক্রান্ত ২ জনের ঠিকানাঃ পিয়ারপুর ১ জন ও রেফায়েতপুর ১ জন। খোকসা উপজেলার আক্রান্ত ২ জনের ঠিকানাঃ কালিবাড়ী ১ জন ও মাষ্টারপাড়ায় ১ জন। ভেড়ামারা  উপজেলার আক্রান্ত ১ জনের ঠিকানাঃ নওদা খেমিরদিয়ার ১ জন। মিরপুর উপজেলায় আক্রান্ত ১ জনের ঠিকানাঃ হাসপাতাল পাড়া ১ জন।

কুষ্টিয়া জেলা প্রশাসকের পক্ষ থেকে জানানো হয়, ঘরের বাহিরে যাওয়ার প্রয়োজন হলে অবশ্যই মাস্ক ব্যবহার করুন। অতি-প্রয়োজনীয় না হলে বাহিরে যাওয়া থেকে বিরত থাকুন। সামাজিক দুরত্ব মেনে চলুন। অনুগ্রহ করে সতর্ক থাকুন, সাবধানে থাকুন।

দৌলতপুরে মাছের পোনা অবমুক্তকরণ

দৌলতপুর প্রতিনিধি ॥ ‘মাছ উৎপাদন বৃদ্ধি করি, সুখী-সমৃদ্ধ দেশ গড়ি’ এই প্রতিপাদ্য নিয়ে জাতীয় মৎস্য সপ্তাহের শেষ দিনে কুষ্টিয়ার দৌলতপুরে মাছের পোনা অবমুক্ত করা হয়েছে। গতকাল সোমবার বেলা সাড়ে ১১টায় উপজেলা পরিষদ পুকুরে মাছের পোনা অবমুক্ত করেন কুষ্টিয়া-১ দৌলতপুর আসনের সংসদ সদস্য এ্যাড. আ. কা. ম. সরওয়ার জাহান বাদশাহ। এসময় উপস্থিত ছিলেন, দৌলতপুর উপজেলা চেয়ারম্যান এ্যাড. এজাজ আহমেদ মামুন, দৌলতপুর উপজেলা নির্বাহী অফিসার (ভারপ্রাপ্ত) মো. আজগর আলী, দৌলতপুর মৎস্য কর্মকর্তা খন্দকার সহিদুর রহমানসহ উপজেলা পরিষদের বিভিন্ন দপ্তরের কর্মকর্তা ও আমন্ত্রিত সুধীজন। পরে মতবিনিময় সভায় জাতীয় মৎস্য সপ্তাহ সফলভাবে পালনের জন্য সকলকে ধন্যবাদ জানানো হয়। জাতীয় মৎস্য সপ্তাহ উদযাপন কমিটি দৌলতপুরের আয়োজনে মৎস্য সপ্তাহ পালন করা হয়।