একাদশে ভর্তি কার্যক্রম শুরু

ঢাকা অফিস ॥  চলমান করোনা পরিস্থিতির কারণে বিলম্বিত একাদশ শ্রেণিতে অনলাইন ভর্তি কার্যক্রম শুরু হয়েছে। গতকাল রোববার সকাল ৭টায় শুরু হয় ভর্তি কার্যক্রম। চলবে ২০ আগস্ট পর্যন্ত। এবার আবেদন ফি নির্ধারণ করা হয়েছে ১৫০ টাকা। নগদ, সোনালী ব্যাংক, টেলিটক, বিকাশ, শিওরক্যাশ ও রকেটের মাধ্যমে ফি পরিশোধ করা যাবে। কারিগরি শিক্ষা বোর্ডের অধীনে ডিপ্লোমা ইন ইঞ্জিনিয়ারিংয়েও গতকাল রোববার থেকে িি.িনঃবনধফসরংংরড়হ.মড়া.নফ ওয়েবসাইটের মাধ্যমে ভর্তির জন্য আবেদন করছে শিক্ষার্থীরা। আগের বছরগুলোর মতোই চার্চ পরিচালিত নটর ডেম কলেজ, হলিক্রস কলেজ, সেন্ট যোসেফ উচ্চমাধ্যমিকবিদ্যালয় ও সেন্ট গ্রেগরি’স হাই স্কুল অ্যান্ড কলেজ এই অনলাইন ভর্তির বাইরে রয়েছে। তাদের ভার্চুয়াল ভর্তি পরীক্ষা নেওয়ার নির্দেশ দিয়েছে ঢাকা শিক্ষা বোর্ড। ঢাকা শিক্ষা বোর্ডের কলেজ পরিদর্শক অধ্যাপক ড. মো. হারুন-অর-রশিদ গত শনিবার বলেন, শিক্ষার্থীদের অনুরোধ করব, তারা যেন সর্বোচ্চসংখ্যক কলেজ পছন্দ করে। এতে তাদের পক্ষে প্রথম পর্যায়েই কলেজ পাওয়া সম্ভব হবে। আর শিক্ষার্থীরা কোনো সমস্যায় পড়লে হেল্পলাইনে যোগাযোগ করতে পারবে। এ ছাড়া সংশ্লিষ্ট বোর্ডগুলোর কর্মকর্তারাও স্বাস্থ্যবিধি মেনে শিক্ষার্থীদের সমস্যা সমাধান করবেন। গত বছরের মতো এবার এসএমএসের মাধ্যমে ভর্তি আবেদনের সুযোগ নেই। শুধু অনলাইনে সর্বনিম্ন পাঁচটি ও সর্বোচ্চ ১০টি কলেজ পছন্দ করতে পারবে। প্রথম পর্যায়ে ৯ থেকে ২০ আগস্ট পর্যন্ত আবেদন করা যাবে। তবে ১৫ আগস্ট জাতীয় শোক দিবসের দিন অনলাইন সার্ভিস ও কল সেন্টার বন্ধ থাকবে। প্রথম পর্যায়ে নির্বাচিত শিক্ষার্থীদের ফল প্রকাশ করা হবে ২৫ আগস্ট রাত ৮টায়। শিক্ষার্থীরা নিশ্চায়ন করতে পারবে ২৬ আগস্ট থেকে ৩০ আগস্ট রাত ৮টা পর্যন্ত। নিশ্চায়ন না করলে প্রথম পর্যায়ের আবেদন বাতিল হবে। দ্বিতীয় পর্যায়ে আবেদন করা যাবে ৩১ আগস্ট থেকে ২ সেপ্টেম্বর রাত ৮টা পর্যন্ত। পছন্দক্রম অনুসারে প্রথম মাইগ্রেশনের ফল প্রকাশ করা হবে ৪ সেপ্টেম্বর রাত ৮টায়। আর দ্বিতীয় পর্যায়ের ফল প্রকাশ করা হবে একই দিন রাত ৮টায়ই। দ্বিতীয় পর্যায়ের শিক্ষার্থীদের নিশ্চায়ন ৫ থেকে ৬ সেপ্টেম্বর বিকেল ৫টা পর্যন্ত চলবে। তৃতীয় পর্যায়ের আবেদন করা যাবে ৭ ও ৮ সেপ্টেম্বর। পছন্দক্রম অনুযায়ী দ্বিতীয় মাইগ্রেশন এবং তৃতীয় পর্যায়ের আবেদনের ফল প্রকাশ করা হবে ১০ সেপ্টেম্বর রাত ৮টায়। এই পর্যায়ের নিশ্চায়ন করতে হবে ১১ থেকে ১২ সেপ্টেম্বর রাত ৮টা পর্যন্ত। আর কলেজভিত্তিক চূড়ান্ত ফল প্রকাশ করা হবে ১৩ সেপ্টেম্বর সকাল ৮টায়। ভর্তি চলবে ১৩ থেকে ১৫ সেপ্টেম্বর পর্যন্ত।

 

উচ্চ আদালতের নির্দেশ উপেক্ষিত

বিধিবহির্ভুত চাপাইগাছী বিল ইজারার প্রতিবাদে কুষ্টিয়ায় মতস্যজীবি সমবায় সমিতির সংবাদ সম্মেলন

নিজ সংবাদ ॥ কুষ্টিয়া জেলা প্রশাসন থেকে ২০০৯ সালের জলমহাল নীতিমালা লংঘন করে নাম সর্বস্ব অবৈধ মৎস্যজীবি সমবায় সমিতিকে ‘নান্দিনা-চাপইগাছী বিল’ ইজারা দেয়ার প্রতিবাদে সংবাদ সম্মেলন করেছে চাপাইগাছী মৎস্যজীবি সমবায় সমিতি। গতকাল রবিবার বেলা ১২টায় কুষ্টিয়া প্রেসক্লাব মিলনায়তনে এই সংবাদ সম্মেলনে লিখিত বক্তব্য পাঠ করেন সমিতির সভাপতি সেলিম বেগ।

তিনি বলেন- কুষ্টিয়া জেলা প্রশাসন ও জলমহাল বন্দোবস্ত কমিটি বাংলা ১৪২৬ থেকে ১৪২৮ সাল পর্যন্ত তিন বছর মেয়াদে বিলটি ইজারা দেয়ার জন্য নীতিমালায় প্রযোজ্য শর্ত পূরন সাপেক্ষে দরপত্র আহ্বান করে। চাপাইগাছী মৎস্যজীবি সমবায় সমিতি যথাযথ বিধি মেনে দরপত্র দাখিল করেন। কিন্তু ইজারা বন্দোবস্ত কমিটি কোনরূপ শর্ত পূরণ ছাড়া এবং বিধিসম্মত না হলেও নাম সর্বস্ব ‘নান্দিয়া মৎস্যজীবি সমবায় সমিতি’ নামের একটি অকার্যকর অবৈধ সমিতিকে উদ্দেশ্য প্রনোদিতভাবে ইজারা বন্দোবস্ত দেন। এর বিরুদ্ধে ভূমি আপিল বোর্ডে আপিল করলে মহামান্য আদালত জেলা জলমহাল বন্দোবস্ত কমিটির ওই আদেশ স্থগিত করে বৈধ সমিতি হিসেবে চাপাইগাছী মৎস্যজীবি সমবায় সমিতির অনুকুলে বিলটি ইজারার নির্দেশ দিলেও তা মানা হচ্ছে না বলে অভিযোগ এই মৎস্যজীবিদের।

মাস্ক পরিধান না করায় কুষ্টিয়ায় ৫৩ জনকে জরিমানা

নিজ সংবাদ ॥ করোনা সংক্রমণ বিস্তার রোধে কুষ্টিয়ায় মাস্ক পরিধান না করায় ৫৩ জনকে জরিমানা করা হয়েছে। গতকাল রবিবার সকালে কুষ্টিয়া  জেলা শহর ও পার্শ্ববর্তী বিভিন্ন স্থানে মাস্ক পরিধান না করায় ভ্রাম্যমাণ আদালতে ৫৩ জনকে এ জরিমানা করা হয়। জেলা প্রশাসনের বিজ্ঞ নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট মোঃ সবুজ হাসান এ ভ্রাম্যমাণ আদালত পরিচালনা করেন। নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট মোঃ সবুজ হাসান জানান- করোনা সংক্রমণ বিস্তার রোধে কুষ্টিয়া জেলা শহর ও পার্শ্ববর্তী বিভিন্ন স্থানে মাস্ক পরিধান না করায় সংক্রামক রোগ (প্রতিরোধ, নিয়ন্ত্রণ ও নির্মূল) আইন, ২০১৮ এর ২৫(২) ধারায় ৫৩ জনকে বিভিন্ন অংকের জরিমানা করা হয়েছে৷  মোবাইল কোর্ট পরিচালনাকালে কুষ্টিয়া জেলা পুলিশ সার্বিক সহযোগিতা করেন। জনস্বার্থে অভিযান অব্যাহত থাকবে বলে জানিয়েছেন ভ্রাম্যমান আদালতের বিচারক৷

 

বঙ্গবন্ধু স্বাধীনতার মহানায়ক হয়েছেন বঙ্গমাতার অনুপ্রেরণায় – মতিয়া চৌধুরী

ঢাকা অফিস ॥  আওয়ামী লীগের প্রেসিডিয়াম সদস্য ও সংসদ সদস্য মতিয়া চৌধুরী বলেছেন, বঙ্গবন্ধু মহীরুহে স্বাধীনতা সংগ্রামের মহানায়ক হয়ে উঠেছেন তার সহধর্মিণীর অনুপ্রেরণায়। গতকাল রোববার দুপুর সোয়া ১২টায় রাজধানীর জাতীয় প্রেসক্লাবে বঙ্গমাতা পরিষদের উদ্যোগে বঙ্গমাতা শেখ ফজিলাতুন্নেছা মুজিবের ৯০তম জন্মদিন উপলক্ষে আয়োজিত আলোচনা সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে এ কথা বলেন তিনি। মতিয়া চৌধুরী বলেন, বঙ্গমাতা ছিলেন অত্যন্ত আন্তরিক। বঙ্গবন্ধু যখন জেলে ছিলেন, তখন বঙ্গমাতা আওয়ামী লীগ, ছাত্রলীগের নেতাকর্মীদের সাহায্য করেছেন। বঙ্গবন্ধুকে যখন জেলে নিল, তখন বঙ্গমাতা পরিবার সামলানোর পাশাপাশি দলও পরিচালনা করেছেন। বঙ্গবন্ধু হেঁটে গেলে, একটা কাটা পেলেও সেটা বঙ্গমাতা বুকে পেতে নিতেন। তিনি বঙ্গবন্ধুর দুঃখকে বুকে ধারণ করেছেন, সুখকে ধারণ করেন নাই। তিনি চাইলে বঙ্গভবনে থাকতে পারতেন। কিন্তু সেটা করেন নাই,’ যোগ করেন তিনি। মতিয়া চৌধুরী বলেন, ‘তিলে তিলে সঞ্চয় করে বঙ্গবন্ধুকে সহযোগিতা করেছেন। মৃত্যুমুখেও তিনি বলেছেন, বঙ্গবন্ধুকে রেখে তিনি বেঁচে থাকতে চান না। শুধু লেখাপড়া করে রাজনীতির উপাদান পাওয়া যায়, তা নয়, তার বাইরেও গড়ে তোলার জায়গা রয়েছে, সেটা বঙ্গমাতার জীবনী থেকে পাওয়া যায়। বিশেষ অতিথির বক্তব্যে পানিসম্পদ উপমন্ত্রী এনামুল হক শামীম বলেন, বঙ্গমাতার কারণেই শেখ মুজিবুর রহমান বঙ্গবন্ধু হয়ে উঠেছিলেন। বঙ্গবন্ধুকে তিনি নিঃস্বার্থভাবে অনুপ্রেরণা ও ভালোবাসা দিয়েছেন। পৃথিবীর কোনো নেতার স্ত্রীর এমন নিঃস্বার্থ সহযোগিতার কথা আমরা শুনিনি। বঙ্গমাতা পৃথিবীর নারীদের জন্য অনুকরণীয় নাম। যতদিন বাংলাদেশ থাকবে, বঙ্গবন্ধুর নাম থাকবে, তেমনি বঙ্গমাতার নামও থাকবে। অন্যদের মধ্যে বক্তব্য দেন বঙ্গমাতা পরিষদের উপদেষ্টা নাজমুল হক, সাধারণ সম্পাদক এম আনিসুর রহমান, আওয়ামী লীগ নেতা এম এ করিম ও মো. শফিউদ্দিন প্রমুখ।

আরও ২৪৮৭ জনের করোনা শনাক্ত, মৃত্যু ৩৪ জনের

ঢাকা অফিস ॥  দেশে গত ২৪ ঘণ্টায় করোনাভাইরাস মিলেছে আরও দুই হাজার ৪৮৭ জনের মধ্যে। ফলে দেশে মোট শনাক্ত রোগীর সংখ্যা দাঁড়াল দুই লাখ ৫৭ হাজার ৬০০ জনে। আক্রান্ত রোগীদের মধ্যে গত ২৪ ঘণ্টায় প্রাণ হারিয়েছেন আরও ৩৪ জন। ফলে করোনায় মোট মৃতের সংখ্যা দাঁড়াল তিন হাজার ৩৯৯ জনে। গতকাল রোববার দুপুরে স্বাস্থ্য অধিদফতরের করোনাভাইরাস বিষয়ক দৈনন্দিন হেলথ বুলেটিনে এ তথ্য জানান অধিদফতরের অতিরিক্ত মহাপরিচালক অধ্যাপক ডা. নাসিমা সুলতানা। তিনি মোট ৮৫টি পিসিআর ল্যাবরেটরিতে নমুনা পরীক্ষার তথ্য তুলে ধরে জানান, গত ২৪ ঘণ্টায় নমুনা সংগ্রহ হয়েছে ১১ হাজার ১৪টি এবং পরীক্ষা হয়েছে ১০ হাজার ৭৫৯টি। এ পর্যন্ত নমুনা পরীক্ষা হয়েছে ১২ লাখ ৬০ হাজার ৩১৯টি। ২৪ ঘণ্টায় যা নমুনা সংগ্রহ হয়েছে, তাতে করোনা শনাক্ত হয়েছে দুই হাজার ৪৮৭ জনের মধ্যে। ফলে এ পর্যন্ত শনাক্ত দুই লাখ ৫৭ হাজার ৬০০ জন। আক্রান্তদের মধ্যে গত ২৪ ঘণ্টায় মৃত্যুবরণ করেছেন ৩৪ জন এবং এ পর্যন্ত মৃত্যুবরণ করেছেন তিন হাজার ৩৯৯ জন। গত ২৪ ঘণ্টায় সুস্থ হয়েছেন এক হাজার ৭৬৬ জন। এ পর্যন্ত সুস্থ হয়েছেন এক লাখ ৪৮ হাজার ৩৭০ জন। গত শনিবারের বুলেটিনে বলা হয়, করোনায় আক্রান্ত রোগীদের মধ্যে গত ২৪ ঘণ্টায় ৩২ জন মারা গেছেন। ১১ হাজার ৭৩৭টি নমুনা পরীক্ষায় নতুন রোগী শনাক্ত হয়েছেন আরও দুই হাজার ৬১১ জন। দেশে একদিনে সর্বোচ্চ মৃত্যুর রেকর্ড ৬৪ জনের। সে তথ্য জানানো হয় ৩০ জুনের বুলেটিনে। সর্বোচ্চ শনাক্তের রেকর্ড চার হাজার ১৯ জনের, যা জানানো হয় ২ জুলাইয়ের বুলেটিনে। গত ডিসেম্বরে চীনের উহান শহর থেকে ছড়ানোর পর গোটা বিশ্বকে মৃত্যুপুরীতে পরিণত করেছে করোনাভাইরাস। এতে এখন পর্যন্ত আক্রান্তের সংখ্যা এক কোটি ৯৮ লাখ ১৭ হাজার ছাড়িয়ে গেছে। মৃতের সংখ্যা সাত লাখ ২৯ হাজারের বেশি। তবে সুস্থ রোগীর সংখ্যা এক কোটি সোয়া ২৭ লাখ প্রায়। বাংলাদেশে করোনাভাইরাস প্রথম শনাক্ত হয় গত ৮ মার্চ। আর এতে প্রথম মৃত্যু হয় ১৮ মার্চ।

কুষ্টিয়া জেলা পরিষদ পার্কে বৃক্ষরোপণ করলেন আ’লীগ যুগ্ম সম্পাদক হানিফ এমপি

নিজ সংবাদ ॥ মুজিব শতবর্ষ উপলক্ষ্যে শোকের মাসে শোককে শক্তিতে রুপান্তরিত করে প্রত্যেককে কমপক্ষে তিনটি গাছ রোপণ করতে হবে। বাংলাদেশ আওয়ামীলীগের সভানেত্রী প্রধানমন্ত্রী দেশরতœ শেখ হাসিনা গত ১৬ জুলাই মুজিববর্ষ উদযাপনের অংশ হিসাবে সারাদেশে ১ কোটি চারা বিতরণ, রোপণ ও বৃক্ষরোপণ কর্মসূচির উদ্বোধন করেন। প্রধানমন্ত্রী গনভবন প্রাঙ্গনে তিনটি গাছের চারা রোপণ করেন। কুষ্টিয়া জেলা পরিষদ পার্কে বৃক্ষরোপণ কর্মসূচির শুভ উদ্বোধন অনুষ্ঠানে আওয়ামীলীগের যুগ্ম-সাধারণ সম্পাদক ও কুষ্টিয়া সদর আসনের সংসদ সদস্য মাহবুবউল আলম হানিফ এসব কথা বলেন।  তিনি আরো বলেন- করোনা ভাইরাস প্রাদুর্ভাবের প্রেক্ষিতে স্বাস্থ্য সুরক্ষা নিয়ম বজায় রেখে কুষ্টিয়ার প্রতিটি এলাকার মানুষকে বৃক্ষরোপণ করার আহব্বান করেন এবং আওয়ামী সংগঠনের নেতাকর্মীদের নির্দেশনা দেন। এমপি হানিফ আরো বলেন, জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান দেশে প্রথম বৃক্ষরোপণ অভিযান শুরু করেছিলেন, তাঁর পদাঙ্ক অনুসরণ করে পরিবেশের ভারসাম্য রক্ষায় ‘মুজিববর্ষে’ এই কর্মসূচিটি বাস্তবায়ন করতে হবে। বেশি করে গাছ লাগান পরিবেশ বাঁচান। পরিবেশের ভারসাম্য রক্ষায় বেশি বেশি গাছ লাগাতে হবে। গতকাল রবিবার বিকেলে কুষ্টিয়া জেলা পরিষদের অর্থায়নে কুষ্টিয়া মহাশ্মশানের পাশে নির্মাণাধীন জেলা পরিষদ পার্কে কুষ্টিয়া জেলা পরিষদ চেয়ারম্যান বীর মুক্তিযোদ্ধা হাজী রবিউল ইসলাম এর সভাপতিত্বে বৃক্ষরোপণ কর্মসূচি অনুষ্ঠিত হয়।

এছাড়াও বৃক্ষরোপণ করেন কুষ্টিয়া-১ আসনের সাংসদ আঃ কাঃ মঃ সরওয়ার জাহান বাদশা, কুষ্টিয়া-৪ আসনের সাংসদ সেলিম আলতাফ জর্জ, সদর উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান আতাউর রহমান আতা, পুলিশ সুপারের পক্ষে অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মোস্তাফিজুর রহমান, জেলা পরিষদের প্রধান নির্বাহী অফিসার মুন্সী মোঃ মনিরুজ্জামান ও শহর আওয়ামীলীগের সভাপতি তাইজাল আলী খাঁন। এসময় অন্যান্যের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন জেলা আওয়ামীলীগের সাবেক সাংগঠনিক সম্পাদক শেখ হাসান মেহেদী, নির্বাহী সদস্য মাযহারুল আলম সুমন, শিক্ষা বিষয়ক সম্পাদক আমজাদ হোসেন রাজুসহ আওয়ামী অঙ্গ সংগঠনের নেতৃবৃন্দ।

করোনায় মৃত্যু ও আক্রান্তের সংখ্যা কমেছে – স্বাস্থ্যমন্ত্রী

ঢাকা অফিস ॥  দেশে করোনাভাইরাসে (কোভিড-১৯) মৃত্যুহার এবং শনাক্ত রোগীর সংখ্যা কমেছে বলে জানিয়েছেন স্বাস্থ্য ও পরিবারকল্যাণমন্ত্রী জাহিদ মালেক। গতকাল রোববার সচিবালয়ে বিশ্ব মাতৃদুগ্ধ সপ্তাহ উপলক্ষে আয়োজিত ব্রিফিংয়ে সংবাদকর্মীদের এক প্রশ্নের জবাবে তিনি এ কথা জানান। স্বাস্থ্যমন্ত্রী বলেন, দেশে মৃত্যুহার ও রোগী কমেছে। বাসায় বসে রোগীরা চিকিৎসা পাচ্ছেন। করোনাভাইরাস টেস্ট কিটের অভাব নেই। বন্যার কারণে ও বাসায় বসে চিকিৎসায় সুস্থ হওয়ায় হাসপাতালে রোগী কমছে। মুমূর্ষু রোগী ছাড়া কেউ হাসপাতালে আসছেন না বলেও জানান স্বাস্থ্যমন্ত্রী। স্বাস্থ্যমন্ত্রী বলেন, আপনারা জানেন, এখন ৮০টি ল্যাব ও কিটের কোনো সংকট নেই। আমরা সব সময় আহ্বান করছি আপনারা টেস্ট করান। আমরা দেখেছি টেস্টের সংখ্যা কমেছে, এটা সত্যি। সেটা একদিকে হয়তো বন্যার কারণে। আর টেস্ট করাতে কিছু মানুষের অনীহাও আছে, যে এমনি ভালো হয়ে যাচ্ছি। এটাও একটা কারণ হতে পারে। স্বাস্থ্যমন্ত্রীর দাবি, মানষের ভিতরে এখন একটা কনফিডেন্স ডেভেলপ করেছে। আপনারা লক্ষ্য করেছেন যে মৃত্যুর হারটা আস্তে আস্তে কমে এসেছে। মানুষ সেবা পাচ্ছে হাসপাতালে এবং টেলিমেডিসিনের মাধ্যমে। ৪/৫ হাজার ডাক্তার টেলিমেডিসিনের মাধ্যমে সেবা দিচ্ছেন। যারা রোগী তারা বাসায় থেকে চিকিৎসা নিচ্ছেন প্রায় ৯০ শতাংশ। প্রয়োজনে ওষুধ পর্যন্ত বাসায় পৌঁছে দেওয়ার সেবা দেওয়া হচ্ছে। যখন ক্রিটিক্যাল হয় তখন তারা হাসপাতালে যায়। হাসপাতালে আসার সংখ্যা কমে গেছে। হাসপাতালেও প্রায় ৬০ শতাংশ সিট খালি। রোগীর সংখ্যাও অনেক কমে গেছে। যেহেতু অল্পতেই ঘরে থেকে ভালো হয়ে যায়, আমরা লক্ষ্য করেছি যে টেস্ট করতেও তাদের মধ্যে অনীহা। আমরা সব সময় আহ্বান করবো আপনারা আসেন, টেস্ট করান। টেস্টের ল্যাবেরও কোনো আভাব নেই, কিটেরও কোনো অভাব নেই। রোগী কমছে কিনা- প্রশ্নে মন্ত্রী বলেন, আমরা মনে করি মৃত্যুর হার কমছে। হাসপাতালে ক্রিটিক্যাল রোগী নেই বলে ৬০ শতাংশ সিট খালি। কেউ অসুস্থ হয়ে ক্রিটিক্যাল না হলে হাসপাতালে যায় না। আবার সুস্থ হওয়ার হারও অনেক বেশি, এখন প্রায় ৬০ শতাংশের বেশি। এসব তথ্য বিশ্লেষণ করে বলতে পারি- আমাদের রোগীর সংখ্যা অবশ্যই কমে যাচ্ছে। রোগীর সংখ্যা কমে যাওয়ার মানেই হলো আক্রান্তের সংখ্যাও মনে করি কমে যাচ্ছে। সংবাদ সম্মেলনে স্বাস্থ্যসেবা বিভাগের সচিব মো. আবদুল মান্নান, স্বাস্থ্য শিক্ষা বিভাগের সচিব আলী নূরসহ কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন।

কুষ্টিয়া জেলা পরিষদের নির্মিত “বঙ্গবন্ধু ম্যুরাল” উদ্বোধন অনুষ্ঠানে মাহবুবউল আলম হানিফ

বঙ্গবন্ধুর ম্যুরাল এলাকাকে ‘বঙ্গবন্ধু স্কয়ার’ ঘোষনা

স্বাধীনতা যুদ্ধে জয় ছিল দীর্ঘ ত্যাগ ও তিতিক্ষার ফসল এবং বঙ্গবন্ধুর নেতৃত্বেই দেশ স্বাধীন হয়েছিল

নিজ সংবাদ ॥ কুষ্টিয়ায় মুজিববর্ষ উপলক্ষে “বঙ্গবন্ধু ম্যুরাল” উদ্বোধন হয়েছে সেই সাথে ‘বঙ্গবন্ধু স্কয়ার’ হিসেবে ঘোষনা করা হয়েছে। কুষ্টিয়া জেলা পরিষদের আর্থিক সহযোগিতায় নির্মিত এই “বঙ্গবন্ধু ম্যুরাল” আনুষ্ঠানিকভাবে ফলক উম্মোচন করে “বঙ্গবন্ধু ম্যুরাল” এর উদ্বোধন করেছেন বাংলাদেশ আওয়ামীলীগের যুগ্ম সাধারন সম্পাদক ও কুষ্টিয়া সদর আসনের সংসদ সদস্য মাহবুবউল আলম হানিফ।
জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান হাজী রবিউল ইসলামের সভাপতিত্বে গতকাল রবিবার সকালে সরকারী কলেজের সম্মুখে স্কুল হেলথ ক্লিনিকের পূর্ব পাশে স্থাপিত “বঙ্গবন্ধু ম্যুরাল”এর উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিতি থেকে বক্তব্য রাখেন কুষ্টিয়া-১ আসনের সাংসদ আ,ক,ম সারওয়ার জাহান বাদশা, কুষ্টিয়া-৪ আসনের সাংসদ ব্যারিষ্টার সেলিম আলতাফ জজ, কুষ্টিয়ার জেলা প্রশাসক মোঃ আসলাম হোসেন, পুলিশ সুপার এস এম তানভীর আরাফাত, জেলা আওয়ামীলীগের সভাপতি আলহাজ্ব সদর উদ্দিন খান, সাধারন সম্পাদক আসগর আলী। বক্তব্য রাখেন কুষ্টিয়া আইনজীবি সমিতির সভাপতি ও জেলা ক্রীড়া সংস্থার সাধারণ সম্পাদক এ্যাড. অনুপ কুমার নন্দী, কুষ্টিয়া শহর আওয়ামীলীগের সভাপতি তাইজাল আলী খান, সদর উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান ও শহর আওয়ামীলীগের সাধারন সম্পাদক আতাউর রহমান আতা, কুষ্টিয়া মেডিকেল কলেজের সাবেক প্রিন্সিপাল প্রফেসর ডাঃ এস.এম মোস্তানজিদ, মুক্তিযোদ্ধা সংসদের সাবেক ডেপুটি কমান্ডার হাজী রফিকুল ইসলাম টুকু, জেলা আওয়ামীলীগের সাবেক সাংগঠনিক সম্পাদক ও ছাত্রলীগ জেলা কমিটির সাবেক সভাপতি শেখ হাসান মেহেদী প্রমুখ।
সভাপতির বক্তব্যে জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান হাজী রবিউল ইসলাম বলেন- কুষ্টিয়াতে জাতির জনকের একটি পুর্নাঙ্গ ম্যুরাল নির্মিত হওয়ার প্রয়োজন ছিল তাই জননেতা মাহবুবউল আলম হানিফের অনুপ্রেরনায় আমি এটি নির্মান করার শক্তি ও সাহস পেয়েছি। কুষ্টিয়া সরকারী কলেজ ও হাসপাতাল কর্তৃপক্ষের আন্তরিক সহযোগিতায় এটা করা সহজ হয়েছে। এটি পুর্নাঙ্গ নির্মাণ কাজ শেষে এখানে একটি সুন্দর পরিবেশের সৃষ্টি হবে। তিনি বলেন, যে কোন কাজ করতে গেলে অনেক ভুলভ্রান্তি থাকতে পারে তাই সকলের সহযোগিতামুলক পরামর্শ কামনা করছি। তিনি বলেন, ৪২শতক জমির উপর নির্মিত ম্যুরালে প্রস্থ ১৫ ফুট, উচ্চতা ২৫ফুট, বেদিসহ উচ্চতা ৩৪ফুট। যার প্রাক্কলিত ব্যয় ৯৭লক্ষ টাকা। হাজী রবিউল ইসলাম বলেন-আমার জীবনের শ্রেষ্ঠ অর্জন এই “বঙ্গবন্ধু ম্যুরাল” নির্মাণ।
প্রধান অতিথির বক্তব্যে আওয়ামীলীগের যুগ্ম সম্পাদক মাহবুবউল আলম হানিফ বলেন- স্বাধীনতা যুদ্ধে জয় ছিল দীর্ঘ ত্যাগ ও তিতিক্ষার ফসল। বঙ্গবন্ধুর নেতৃত্বেই দেশ স্বাধীন হয়েছিল। তিনি সারা জীবন সংগ্রাম করেছেন স্বাধীনতার জন্য। জাতির জনককে এই মাসে নিষ্ঠুরভাবে স্বপরিবারে হত্যা করা হয়েছিল। শুধু কি তাই ? বিতর্কিত করা হয়েছিল। হানিফ বলেন- কুষ্টিয়া সরকারী কলেজের সামনের এই জায়গাটি কুষ্টিয়াবাসীর জন্য ঐতিহ্যপুর্ন। দৃষ্টিনন্দন ও সুন্দর পরিবেশে জাতির জনকের ম্যুরাল নির্মিত হওয়ায় এখানকার পরিবেশ সুন্দর হবে। তবে পবিত্র এই স্থানটিকে কলুষিত এবং নোংরা করতে আসলে তাদের ব্যাপারে প্রশাসনকে কঠোর নজদারী করতে হবে। তিনি বঙ্গবন্ধুর ম্যুরাল এলাকাকে ‘বঙ্গবন্ধু স্কয়ার’ হিসেবে ঘোষনা দেন।
বিশেষ অতিথির বক্তব্যে সাংসদ আ,ক,ম সরওয়ার জাহান বাদশা বলেন, জননেতা মাহবুবউল আলম হানিফের রুচির প্রশংসা করতে হয়। হানিফের প্রতিটি কাজেই রুচি সম্মত। কুষ্টিয়া সরকারী কলেজের সামনে বঙ্গবন্ধুর ম্যুরাল অনেক মার্জিত হবে এখানকার পরিবেশ ও সাংস্কৃতিক আবহ অনেক উজ্জলতর হবে। তিনি জেলা পরিষদের চেয়ারম্যানকে এত বড় ও বৃহৎ উদ্যোগ গ্রহনের জন্য ধন্যবাদ জানান। কুষ্টিয়া-৪ আসনের সাংসদ ব্যারিষ্টার সেলিম আলতাফ জজ বলেন- প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বাংলাদেশ বিনির্মানে কাজ করে যাচ্ছেন। ২০৪১ সাল হবে বাংলাদেশ উন্নত দেশ। তিনি বলেন- বাংলাদেশে কেউ রাজনীতি করতে আসলে তাকে ২টি আদর্শের উপর ভিত্তি করতে হবে এর মধ্যে একটি হলো বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান এবং অপরটি হলো মুক্তিযুদ্ধ। এর বাইরে কেউ রাজনীতি করতে আসলে তারা আস্তাকুড়ে পড়বে। তিনি কুষ্টিয়ায় বঙ্গবন্ধুর মুর্যাল নির্মানের ঘটনাটি ইতিহাসের স্বাক্ষর হিসেবে উলে¬খ করেন। জেলা প্রশাসক মোঃ আসলাম হোসেন বলেন- একটি প্রতিক্রিয়াশীল সাম্প্রদায়িক শক্তি বঙ্গবন্ধুকে স্বপরিবারে হত্যা করেছিল। আজ বঙ্গবন্ধুর ম্যুরাল নতুন প্রজম্মকে শক্তি ও সাহস যোগাবে। আমরা যারা মুক্তিযুদ্ধ দেখেনি তারা আজ বঙ্গবন্ধুর ম্যুরাল দেখে শক্তি অর্জন করতে পারবো। আর সাম্প্রদায়িক ও প্রতিক্রিয়াশলি শক্তিকে প্রতিরোধ করে এগিয়ে যেতে পারবো। পুলিশ সুপার এস.এম তানভীর আরাফাত বলেন- বঙ্গবন্ধুর ম্যুরাল একটি পবিত্র স্থান হিসেবে বিবেচিত হবে। সেখানে কোন রকমের অপবিত্র ও অসামাজিক কার্যকলাপ যাতে না হতে পারে সেদিকে বিশেষ খেয়াল রাখতে হবে। তিনি বলেন, জননেতা মাহবুলউল আলম হানিফ অসম্ভবকে সম্ভব করেন খুবই সহজ ভাষায়। তিনি প্রতিটি বিষয়ে সাংঘাতিক আন্তরিক। আমাদের বঙ্গবন্ধুকে মনে ও প্রানে ধারন করতে হবে। জেলা আওয়ামীলীগের সভাপতি আলহাজ্ব সদরউদ্দিন খান বলেন- ৫০ বছরে কুষ্টিয়ায় দৃশ্যমান কোন উন্নয়ন হয়নি। জননেতা হানিফের আন্তরিকতায় কুষ্টিয়ায় ব্যাপক উন্নয়ন হয়েছে। জেলার মানুষেরা এখন উন্নয়নের সুফল ভোগ করছেন। তিনি আরো বলেন- কুষ্টিয়ার এই ম্যুরালটি সারাদেশের মধ্যে শ্রেষ্ঠ বিবেচিত হবে বলে আশা রাখি। তিনি জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান এত সুন্দর একটি উদ্যোগ নেয়ায় অভিনন্দন জানান। সাধারন সম্পাদক আসগর আলী বলেন- যৌবনের বড় একটি সময় পার করেছি এই সরকারী কলেজ প্রাঙ্গনে। এখানে বহু স্মৃতি এখন মনে ও প্রানে ভাসে। তিনি বলেন- আওয়ামীলীগকে আজ চাটুকদারের হাত থেকে রক্ষা করতে হবে। আত্মরক্ষা নয় আত্মশুদ্ধির মাধ্যমে জাতির জন্য এই কাজটি গুরুত্ব হয়ে পড়েছে। শহর আওয়ামীলীগের সাধারন সম্পাদক, সদর উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান আতাউর রহমান আতা বলেন- সুন্দর একটি পরিবেশে জাতির জনকের ম্যুরাল স্থাপন ছিল সময়ের দাবী। কুষ্টিয়া জেলা পরিষদের চেয়ারম্যানের আন্তরিক প্রচেষ্ঠায় তা সম্পন্ন হতে পারায় কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করছি। অনুষ্ঠান শেষে ধন্যবাদ জ্ঞাপন করেন জেলা পরিষদের প্রধান নির্বাহী উপ-সচিব মুন্সী মোহাম্মদ মনিরুজ্জামান। মুর্যাল উদ্বোধনের আগে প্রধান অতিথি মাহবুবউল আলম হানিফ এমপি সর্বপ্রথম বঙ্গবন্ধুর ম্যুরালে ফুল দিয়ে শ্রদ্ধা জ্ঞাপন করেন।
অনুষ্ঠানস্থলে পৌছে আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মাহবুবউল আলম হানিফ সাংবাদিকদের প্রশ্নের উত্তরে বলেছেন, সেনাবাহিনীর অবসরপ্রাপ্ত মেজর সিনা মো. রাশেদের মৃত্যুর বিষয়টি অত্যন্ত দু:খজনক। এ ঘটনার তদন্ত চলছে। ঘটনায় জড়িত প্রত্যেককে আ্ইনের আওতায় এনে কঠোর শাস্তির বিধান করবে সরকার। এ সময় সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে হানিফ আরো বলেন, স্বাস্থ্যখাতের অব্যবস্থাপনার বিষয়টি একদিনের নয়। তবে শেখ হাসিনার সরকার স্বাস্থ্যখাতের দুর্নীতির বিরুদ্ধে যে অভিযান শুরু করেছে বিএনপি সে অভিযানের বিরুদ্ধে কথা বলে প্রকারন্তরে এই দুর্নীতিকে প্রশ্রয় দিচ্ছে। ভারতের সঙ্গে বাংলাদেশের সম্পর্কের বিষয়ে পররাষ্ট্রমন্ত্রীর দেওয়া বক্তব্যের ব্যাপারে হানিফের দৃষ্টি আকর্ষণ করা হলে তিনি বলেন- মন্ত্রীর বক্তব্যের ব্যাখ্যা মন্ত্রীই দিতে পারবেন। এ প্রসঙ্গে তিনি আরও বলেন, বাংলাদেশর পররাষ্ট্রনীতি হলো, প্রতিবেশিসহ সব রাষ্ট্্েরর সঙ্গে বন্ধুত্বপূর্ণ সম্পর্ক বজায় রাখা।
এরপর বঙ্গবন্ধুর ম্যূরালে জেলা পরিষদ, জেলা প্রশাসন, পুলিশ প্রশাসন, জেলা আওয়ামীলীগ, ছাত্রলীগ, জেলা ক্রীড়া সংস্থাসহ বিভিন্ন সংগঠন ও প্রতিষ্ঠানের পক্ষ থেকে ফুল দিয়ে শ্রদ্ধা ও সম্মান জানানো হয়।

সরকারি কর্মচারী কল্যাণ ফেডারেশনের উদ্যোগে বঙ্গমাতা ফজিলাতুন্নেছা মুজিবের  জন্মবার্ষিকী উদযাপন

সরকারি কর্মচারী কল্যাণ ফেডারেশনের উদ্যোগে মিরপুর ১০ সকাল-বিকাল সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় সভাকক্ষে সকাল ১১ টায় বঙ্গমাতা ফজিলাতুন্নেছা মুজিবের ৯০তম জন্মবার্ষিকী উপলক্ষে  দোয়া মাহফিল ও আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়। আলোচনা সভায় সভাপতিত্ব করেন সরকারি কর্মচারী কল্যাণ ফেডারেশনের সভাপতি ওয়ারেস আলী। সভায় প্রধান অতিথি ছিলেন সরকারি কর্মচারী সংহতি পরিষদের সভাপতি নিজামুল ইসলাম ভূঁইয়া মিলন। প্রধান বক্তা ছিলেন বাংলাদেশ সরকারি কর্মচারী সংহতি পরিষদের মহাসচিব মোহাম্মদ আমজাদ আলী খান। সভায় আরো বক্তব্য রাখেন প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের কর্মচারী নেত্রী ফরিদা ইয়াসমিন, ঢাকা ওয়াসার সাইফুল ইসলাম, মোহাম্মদ বিল্লাল হোসেন, সমাজসেবা অধিদপ্তরের মহাসচিব জাকির হোসেন, ঢাকা নগর উত্তর বিভাগের সম্পাদক জাকির হোসেন, পরমাণু কমিশনের কর্মচারী ইউনিয়নের মহাসচিব উজ্জল হোসেন, বিজিপ্রেস সাধারণ সম্পাদক ফরিদুল ইসলাম, পরিবার পরিকল্পনা অধিদপ্তর আক্তার  হোসেন, নজরুল ইসলাম ডাক বিভাগ, কর্মচারী কল্যাণ  ফেডারেশনের উপদেষ্টা মনির হোসেন। অনুষ্ঠান পরিচালনা করেন সরকারি কর্মচারী কল্যাণ ফেডারেশনের সাধারণ সম্পাদক  খায়ের আহমেদ মজুমদার। বঙ্গমাতা ফজিলাতুন্নেছা মুজিবের জন্মবার্ষিকীর আলোচনা সভায় কর্মচারী নেতৃবৃন্দ তাদের স্ব স্ব প্রতিষ্ঠানের বিভিন্ন সমস্যার কথাগুলো তুলে ধরেন এবং ১৯৭৩ সালে জাতির জনক বঙ্গবন্ধু সরকারি কর্মচারীদের এর থেকে ১ থেকে ১০ নম্বর গ্রেড পর্যন্ত যে বাস্তবায়ন করেছিলেন। তা বিএনপি রাষ্ট্রীয় ক্ষমতায় এসে ১০  থেকে ৩০ গ্রেড পর্যন্ত  করেছেন তা বাতিল পূর্বক ১৯৭৩ সালে বঙ্গবন্ধুর নির্দেশ বাস্তবায়নের জন্য সভায় সকলের দাবি জানাই। ৮ আগস্ট বঙ্গমাতা ফজিলাতুন্নেছা মুজিবের জীবনের উপরে আলোকপাত করেন এবং তার জন্মদিনের কেক কেটে এবং বিশেষ  মোনাজাত ও দোয়া মাহফিল অনুষ্ঠিত হয়। সংবাদ বিজ্ঞপ্তি

মাশরাফির বাবা-মা করোনায় আক্রান্ত

ঢাকা অফিস ॥ এবার করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছেন নড়াইল-২ আসনের সংসদ সদস্য ও বাংলাদেশ ক্রিকেট দলের সাবেক অধিনায়ক মাশরাফি বিন মর্তুজার বাবা-মা, মামি ও ছোট ভাইয়ের স্ত্রী। গতকাল শনিবার সকালে নড়াইলের সিভিল সার্জন ডা. আবদুল মোমেন বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন। জানা গেছে, শরীরে করোনার উপসর্গ থাকায় বৃহস্পতিবার মাশরাফির বাবা গোলাম মর্তুজা স্বপন, মা হামিদা মর্তুজা, মামি কামরুন নাহার ও ছোট ভাই মুরসালিনের স্ত্রী সুমাইয়া খাতুন নমুনা দেন। পরে গত শুক্রবার রাতে তাদের করোনা পজিটিভ রিপোর্ট আসে। এর আগে মাশরাফি, তার স্ত্রী সুমনা হক সুমি ও ছোট ভাই মুরসালিন করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হন। তারা এখন সুস্থ। নড়াইল এক্সপ্রেস ফাউন্ডেশনের সহ-সভাপতি শামিমুল ইসলাম বলেন, মাশরাফির বাবা-মা, মামি ও ছোট ভাইয়ের স্ত্রীর করোনা পজিটিভ। করোনার কঠিন সময়ে নড়াইলবাসীর জন্য মর্তুজা পরিবারের আত্মত্যাগ সবাই জানেন। দিনরাত এক করে মাশরাফির বাবা লড়াই করেছেন অসহায় মানুষের জন্য, ছুটেছেন এ প্রান্ত থেকে ও প্রান্তে। করোনা আক্রান্ত মাশরাফির পরিবারের চার সদস্যই নড়াইলের বাসায় চিকিৎসা নিচ্ছেন। সবাই ভালো আছেন।

বঙ্গবন্ধু হত্যার বিচারের রায়ের পূর্ণাঙ্গ বাস্তবায়ন দাবি

ঢাকা অফিস ॥ শোকের মাসেই বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান ও তার পরিবারের সদস্যদের হত্যাকান্ডের বিচারের পূর্ণাঙ্গ রায় কার্যকর করার দাবি জানিয়েছে জাতীয় স্বাধীনতা পার্টি-জেএসপি নামে একটি সংগঠন। গতকাল শনিবার রাজধানীর জাতীয় প্রেসক্লাবের সামনে আয়োজিত এক মানববন্ধন থেকে এ দাবি জানায় সংগঠনটি। মানববন্ধনে বলা হয়, এই শোকের মাসেই বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান ও তার পরিবারের সদস্যদের হত্যাকা-ের বিচারের পূর্ণাঙ্গ রায় কার্যকর এবং বাস্তবায়ন করার জোর দাবি জানাই। আমরা চাই, এই মুজিববর্ষেই সব খুনির বিচার হোক। যারা আত্মগোপনে আছে তাদের দেশে ফিরিয়ে এনে দ্রুত বিচার করে দেশকে কলঙ্কমমুক্ত করা হোক। জাতীয় স্বাধীনতা পার্টির সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব দীপক কুমার পালিতের সভাপতিত্বে মানববন্ধন আয়োজিত হয়।

বাংলাদেশ পোস্টম্যান ও ডাক কর্মচারী ইউনিয়ন কেন্দ্রীয় কমিটি ডাক ভবন ঢাকার উদ্যোগে বঙ্গমাতা ফজিলাতুন্নেছা মুজিবের জন্মদিন পালন

বঙ্গমাতা ফজিলাতুন্নেছা মুজিবের ৯০তম জন্মবার্ষিকী উপলক্ষে বাংলাদেশ  পোস্টম্যান ও ডাক কর্মচারী ইউনিয়ন কেন্দ্রীয় কমিটি ডাক ভবন ঢাকার উদ্যোগে গতকাল শনিবার বিকাল ৫টায় ডাক ভবন সভাকক্ষে দোয়া মাহফিল ও আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়। অনুষ্ঠানের শুরুতে পবিত্র কোরআন থেকে তেলাওয়াত করেন রফিকুল ইসলাম। সভায় সভাপতিত্ব করেন আব্দুল হালিম মোল্লা। প্রধান অতিথি হিসেবে বক্তব্য রাখেন কেন্দ্রীয় কমিটির সাধারণ সম্পাদক আলহাজ্ব মোহাম্মদ আমজাদ আলী খান। বিশেষ অতিথি ছিলেন ডাক অধিদপ্তর উপদেষ্টা সাইদুল ইসলাম পিপলু। অন্যান্যের মধ্যে বক্তব্য রাখেন ঢাকা জিপিও সভাপতি মোঃ মাসুদ মিয়া, ঢাকা নগর উত্তর বিভাগের সভাপতি ইদ্রিস হাওলাদার, বৈদেশিক ডাকঘরের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি মেজবাহ উদ্দিন হিরু, ডাক অধিদপ্তরের কর্মচারী  নেতা সিরাজুল ইসলাম, ঢাকা জিপিও জেলা শাখার সম্পাদক মাসুদুজ্জামান, নারায়ণগঞ্জ জেলা শাখা সম্পাদক তাজুল ইসলাম, পিএমজি অফিসে সভাপতি  মোহাম্মদ আলী। সভায় বঙ্গমাতা ফজিলাতুন্নেছা মুজিবের উপরে দীর্ঘ তাঁর জীবনের উপরে আলোচনায় প্রধান অতিথি আমজাদ আলী খান বলেন ১৯৩০ সালে গোপালগঞ্জ জেলায় জন্মগ্রহণ করেন এই মহীয়সী নারী বেগম ফজিলাতুন্নেছা মুজিব। জাতির জনক বঙ্গবন্ধু দীর্ঘ ২৩ বছর যৌবনের বেশিরভাগ সময়ই কারাগারে কাটিয়েছেন। তার অবর্তমানে বঙ্গমাতা ফজিলাতুন্নেছা মুজিব রাজনৈতিক, পারিবারিক তিনি এককভাবে দেখাশোনা করছেন বলেন তারই গর্ভে জন্মগ্রহণ করেছিলেন বর্তমান সরকারের সফল রাষ্ট্রনায়ক দেশরতœ জননেত্রী শেখ হাসিনা। ঘাতকরা ১৫ আগষ্ট বঙ্গবন্ধুকে সপরিবারে হত্যা করলেও তারা বঙ্গবন্ধুর আদর্শকে হত্যা করতে পারে নাই। পাকিস্তানি পরাজিত শক্র যুদ্ধাপরাধীরা বিএনপি-জামাত সবসময় ষড়যন্ত্রে লিপ্ত। একুশে আগস্ট বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ কার্যালয়ের সামনে বাংলাদেশ আওয়ামী লীগকে নতৃত্বশূন্য করার জন্য জামাত-বিএনপি জোট সরকার একুশে আগস্ট গ্রেনেড হামলা করে  ওরা জননেত্রী  শেখ হাসিনাকে হত্যা করতে চেয়েছিল। আল্লাহর অশেষ রহমত শেখ হাসিনাকে হত্যা করতে পারিনাই। সভায় বক্তারা বলেন ১৫ আগস্ট বঙ্গবন্ধুকে সপরিবারে হত্যার বিচারের রায়। যে সমস্ত অপরাধী বিদেশের মাটিতে পলাতক আছে তাদেরকে দেশের মাটিতে নিয়ে এসে ফাঁসির রায় কার্যকর করার জন্য দাবি জানানো হয়। আলোচনা সভা শেষে দোয়া মাহফিল ও বিশেষ মোনাজাত পরিচালনা করেন রফিকুল ইসলাম এবং সভা পরিচালনা করেন কেন্দ্রীয় কমিটির সাংগঠনিক সম্পাদক জাকির হোসেন। সংবাদ বিজ্ঞপ্তি

শুধু মন্দির প্রাঙ্গণেই সীমাবদ্ধ থাকবে এবারের দুর্গোতসব

ঢাকা অফিস ॥ করোনা সংক্রমণ এড়াতে এ বছর হিন্দু ধর্মাবলম্বীদের সবচেয়ে বড় ধর্মীয় উৎসব শারদীয় দুর্গোৎসব অনাড়ম্বরভাবে অনুষ্ঠিত হবে। এবার পূজার অনুষ্ঠানমালা শুধু ধর্মীয় রীতিনীতি অনুসরণ করে পূজা-অর্চনার মাধ্যমে মন্দির প্রাঙ্গণেই সীমাবদ্ধ থাকবে বলে সিদ্ধান্ত হয়েছে। গতকাল শনিবার বাংলাদেশ পূজা উদযাপন পরিষদ কেন্দ্রীয় কমিটির সভাপতি মিলন কান্তি দত্ত গণমাধ্যমকে এ তথ্য জানিয়েছেন। তিনি জানান, করোনা মহামারিকালে এ বছর পূজার অনুষ্ঠানমালা শুধু ধর্মীয় রীতিনীতি অনুসরণ করে পূজা অর্চনার মাধ্যমে মন্দির প্রাঙ্গণেই সীমাবদ্ধ থাকবে বলে সিদ্ধান্ত হয়েছে। আগামী ১১ আগস্ট হিন্দু সম্প্রদায়ের অন্যতম উৎসব জন্মাষ্টমীও সীমিত পরিসরে উদযাপন হবে বলে জানান তিনি। মিলন কান্তি দত্ত বলেন, এ বছর জন্মাষ্টমীতে কোনো প্রকার সমাবেশ, শোভাযাত্রা ও মিছিল করা হবে না। তবে স্বাস্থ্যবিধি মেনে মন্দির প্রাঙ্গণে পূজা অনুষ্ঠান ও সব আচারবিধি পালন করা হবে। তিনি বলেন, আসছে দুর্গাপূজায় আলোকসজ্জা, মেলা, আরতি প্রতিযোগিতা ও কোনো ধরনের সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান করা হবে না। এবার খোলা জায়গায় অস্থায়ী প্যান্ডেলে স্বাস্থ্যবিধি অনুসরণ করে পূজা করার বিষয়েও সংশ্লিষ্ট আয়োজকদের অনুমতি নিতে হবে বলে জানান পরিষদ সভাপতি। গত বছর সারা বাংলাদেশে ৩১ হাজার ১০০টি মন্ডপে দুর্গাপূজা অনুষ্ঠিত হয়েছিল, যার মধ্যে ঢাকা মহানগরে এবার ২৩৭টি মন্ডপে পূজা অনুষ্ঠিত হয়েছে। হিন্দু পঞ্জিকামতে এবার দুর্গোৎসবের আনুষ্ঠানিকতা শুরু হবে ২৩ অক্টোবর। সেদিন গত শুক্রবার, মহাসপ্তমী পূজার মাধ্যমে শুরু হবে দুর্গোৎসবের মূল আচার অনুষ্ঠান।

পরিকল্পনা অনুযায়ী এগুচ্ছে মেজর সিনহা হত্যার তদন্ত

ঢাকা অফিস ॥ সেনাবাহিনীর সাবেক মেজর সিনহা মোহাম্মদ রাশেদ খান নিহতের ঘটনায় স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের জননিরাপত্তা বিভাগ গঠিত তদন্ত কমিটির কার্যক্রম কর্মপরিকল্পা অনুযায়ী এগুচ্ছে বলে জানিয়েছেন কমিটির প্রধান চট্টগ্রাম অতিরিক্ত বিভাগীয় কমিশনার (উন্নয়ন) মো. মিজানুর রহমান। তদন্ত দলের প্রধান এই কর্মকর্তা বলেন, আমরা প্রথম বৈঠকেই কিছু কর্মপরিকল্পনা ঠিক করেছি। সেই কর্মপরিকল্পনা নিয়েই আমরা এগুচ্ছি, তদন্তের স্বার্থে যাদের সঙ্গে কথা বলা দরকার আমরা সেটা করছি। তিনি বলেন, আমরা আন্তরিকভাবে চেষ্টা করছি, আসল সত্যটা বেরিয়ে আসুক। আমরা আশা করছি সরকারের নির্ধারিত সাত কর্মদিবসের মধ্যে আমরা কাজ শেষ করতে পারব। গত ৩১ জুলাই রাত সাড়ে নয়টার দিকে টেকনাফ থেকে কক্সবাজারের দিকে আসার পথে বাহারছড়া শামলাপুর পুলিশ চেকপোস্টে তল্লাশির নামে গাড়ি থেকে নামিয়ে সেনাবাহিনীর সাবেক মেজর সিনহা মো. রাশেদকে গুলি করে হত্যা করেন তদন্ত কেন্দ্রের আইসি মো. লিয়াকত আলী। ঘটনার পর দিন প্রথমে কক্সবাজারের অতিরিক্ত জেলা ম্যাজিস্ট্রেট মো. শাহজাহান আলীকে প্রধান করে তিন সদস্যের কমিটি গঠন করে স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের জননিরাপত্তা বিভাগ। এর একদিন পর ২ আগস্ট তা পুনর্গঠন করে চট্টগ্রামের অতিরিক্ত বিভাগীয় কমিশনার মোহাম্মদ মিজানুর রহমানকে তদন্ত দলের প্রধান করা হয়। কমিটিতে প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের সশস্ত্র বাহিনী বিভাগের একজন প্রতিনিধি, রামু ১০ পদাতিক ডিভিশনের জিওসি ও কক্সবাজারের এরিয়া কমান্ডারের একজন প্রতিনিধি, পুলিশের চট্টগ্রাম রেঞ্জের উপ-মহাপরিদর্শকের (ডিআইজি) একজন প্রতিনিধি ও কক্সবাজার জেলা প্রশাসনের একজন প্রতিনিধি রাখা হয়েছে। এ কমিটিকে সরেজমিনে তদন্ত করে ঘটনার কারণ, উৎস অনুসন্ধান এবং ভবিষ্যতে যেন এ ধরনের ঘটনা না ঘটে তার করণীয় সম্পর্কে সুস্পষ্ট মতামত দিতে বলা হয়েছে। গত ৪ আগস্ট কক্সবাজার সার্কিট হাউস সম্মেলন কক্ষে তদন্ত কমিটির প্রথম বৈঠক অনুষ্ঠিত হয়। একই ঘটনায় গত বুধবার কক্সবাজারের টেকনাফ সিনিয়র জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট তামান্না ফারাহ’র আদালতে টেকনাফ থানার ওসি প্রদীপ ও মো. লিয়াকতসহ নয়জনকে অভিযুক্ত করে হত্যা মামলা দায়ের করেন সিনহার বড় বোন শারমিন শাহরিয়া ফেরদৌস। আদালত বিষয়টি আমলে নিয়ে টেকনাফ থানার ওসিকে এফআইআর হিসেবে রুজু এবং র‌্যাবকে তদন্তের নির্দেশ দেন। বর্তমানে মামলাটি র‌্যাবের কাছে তদন্তাধীন রয়েছে। ওসি প্রদীপ ও লিয়াকতসহ সাতজন বর্তমানে কারাগারে রয়েছেন। মামলার অপর আসামিরা হলেনÑএসআই নন্দলাল রক্ষিত, এসআই টুটুল, এএসআই লিটন মিয়া, কনস্টেবল সাফানুর করিম, কনস্টেবল কামাল হোসেন, কনস্টেবল আবদুল্লাহ আল মামুন ও কনস্টেবল মো. মোস্তফা। সিনহা রাশেদের বাড়ি যশোরের বীর হেমায়েত সড়কে। তার বাবা মুক্তিযোদ্ধা এরশাদ খান অর্থ মন্ত্রণালয়ের উপসচিব ছিলেন। ৫১ বিএমএ লং কোর্সের সঙ্গে সেনাবাহিনীর কমিশন লাভ করেছিলেন সিনহা রাশেদ। ২০১৮ সালে সৈয়দপুর সেনানিবাস থেকে তিনি স্বেচ্ছায় অবসর নেন। প্রধানমন্ত্রীর নিরাপত্তায় নিয়োজিত স্পেশাল সিকিউরিটি ফোর্সেও (এসএসএফ) তিনি দায়িত্ব পালন করেছেন।

দেশে করোনা আক্রান্তের সংখ্যা আড়াই লাখ ছাড়ালো

ঢাকা অফিস ॥ দেশে গত ২৪ ঘণ্টায় করোনাভাইরাস (কোভিড-১৯) করোনা শনাক্ত হয়েছে আরও দুই হাজার ৬১১ জনের। এতে মোট শনাক্ত রোগীর সংখ্যা এখন দুই লাখ ৫৫ হাজার ১১৩। গত ২৪ ঘণ্টায় এ ভাইরাসে মারা গেছেন ৩২ জন। এতে করোনায় মৃতের সংখ্যা বেড়ে দাঁড়াল তিন হাজার ৩৬৫ জনে। গতকাল শনিবার দুপুরে স্বাস্থ্য অধিদফতরের করোনাভাইরাস বিষয়ক দৈনন্দিন বুলেটিনে এ তথ্য তুলে ধরা হয়। অনলাইনে উপস্থাপন করেন অধিদফতরের অতিরিক্ত মহাপরিচালক অধ্যাপক ডা. নাসিমা সুলতানা। তিনি মোট ৮৪টি পিসিআর-ল্যাবরেটরিতে নমুনা পরীক্ষার তথ্য তুলে ধরে জানান, করোনাভাইরাস শনাক্তে গত ২৪ ঘণ্টায় ১১ হাজার ৫২৯টি নমুনা সংগ্রহ করা হয়। পরীক্ষা করা হয় আগের কিছু মিলিয়ে ১১ হাজার ৭৩৭টি নমুনা। এ নিয়ে মোট নমুনা পরীক্ষা করা হলো ১২ লাখ ৪৯ হাজার ৫৬০টি। নতুন পরীক্ষায় করোনা মিলেছে দুই হাজার ৬১১ জনের মধ্যে। এ নিয়ে মোট শনাক্ত রোগীর সংখ্যা দাঁড়াল দুই লাখ ৫৫ হাজার ১১৩ জনে। আক্রান্তদের মধ্যে গত ২৪ ঘণ্টায় মৃত্যু হয়েছে আরও ৩২ জনের। ফলে ভাইরাসটিতে মোট মৃত্যু হলো তিন হাজার ৩৬৫ জনের। গত ২৪ ঘণ্টায় সুস্থ হয়েছেন আরও এক হাজার ২০ জন। এ নিয়ে মোট সুস্থ রোগীর সংখ্যা দাঁড়াল এক লাখ ৪৬ হাজার ৬০৪ জনে। গত ২৪ ঘণ্টায় যারা মারা গেছেন তাদের পুরুষ ২৫ জন এবং নারী সাতজন। এ পর্যন্ত মৃতদের মধ্যে দুই হাজার ৬৫৫ জন পুরুষ এবং ৭১০ জন নারী। গত ২৪ ঘণ্টায় হাসপাতালে মারা গেছেন ৩১ জন এবং বাড়িতে মৃত্যু হয়েছে একজনের। এদের মধ্যে ২০ বছরের বেশি বয়সী একজন, চল্লিশোর্ধ্ব চারজন, পঞ্চাশোর্ধ্ব ১২ জন, ষাটোর্ধ্ব ১০ জন, সত্তরোর্ধ্ব চারজন ও ৮০ বছরের বেশি বয়সী একজন ছিলেন। ১৬ জন ছিলেন ঢাকা বিভাগের, চারজন চট্টগ্রাম বিভাগের, পাঁচজন খুলনা বিভাগের, চারজন রাজশাহী বিভাগের, দুজন সিলেট বিভাগের এবং একজন ছিলেন বরিশাল বিভাগের। গত শুক্রবারের বুলেটিনে বলা হয়, করোনায় আক্রান্ত রোগীদের মধ্যে গত ২৪ ঘণ্টায় ২৭ জন মারা গেছেন। ১২ হাজার ৬৯৯টি নমুনা পরীক্ষায় নতুন রোগী শনাক্ত হয়েছেন আরও দুই হাজার ৮৫১ জন। দেশে একদিনে সর্বোচ্চ মৃত্যুর রেকর্ড ৬৪ জনের। সে তথ্য জানানো হয় ৩০ জুনের বুলেটিনে। সর্বোচ্চ শনাক্তের রেকর্ড চার হাজার ১৯ জনের, যা জানানো হয় ২ জুলাইয়ের বুলেটিনে। গতকাল শনিবারের বুলেটিনে জানানো হয়, গত ২৪ ঘণ্টায় নমুনা পরীক্ষার তুলনায় রোগী শনাক্তের হার ২২ দশমিক ২৫ শতাংশ। এ পর্যন্ত নমুনা পরীক্ষার তুলনায় রোগী শনাক্তের হার ২০ দশমিক ৪২ শতাংশ। আর রোগী শনাক্ত তুলনায় সুস্থতার হার ৫৭ দশমিক ৪৭ শতাংশ এবং মৃত্যুর হার ১ দশমিক ৩২ শতাংশ। করোনা মহামারির এই সময়ে জ¦র, কাশিকে সামান্য মনে না করার আহ্বান জানান ডা. নাসিমা। জ¦র, কাশিসহ কোনোরকম করোনার উপসর্গ দেখা দিলে পরীক্ষা করার আহ্বান জানান তিনি। তিনি বলেন, বিনীতভাবে আবারও অনুরোধ জানাব, যেকোনো লক্ষণ, উপসর্গ থাকলে অবশ্য নিকটস্থ নমুনা সংগ্রহ কেন্দ্রে গিয়ে নমুনা দেবেন এবং পরীক্ষা করাবেন। এই করোনাভাইরাসকে মোকাবিলা করার জন্য নমুনা পরীক্ষা করা অনেক বেশি জরুরি। যত বেশি আমরা নমুনা পরীক্ষা করতে পারব, তত বেশি এই রোগ প্রতিরোধ করা সহজ হবে। কাজেই আপনারা এই রোগ গোপন করবেন না। জ¦র, কাশিকে সামান্য মনে করবেন না। জ¦র, কাশি হলেই আপনারা নমুনা পরীক্ষা করতে দেবেন। নাসিমা সুলতানা বলেন, উপজেলা, জেলাসহ সব জায়গায় নমুনা পরীক্ষা করার ব্যবস্থা আছে। স্বাস্থ্যবিধিগুলো যথাযথভাবে মেনে চলার জন্য বিনীতভাবে অনুরোধ জানাচ্ছি। গত ডিসেম্বরে চীনের উহান শহর থেকে ছড়ানোর পর গোটা বিশ্বকে মৃত্যুপুরীতে পরিণত করেছে করোনাভাইরাস। এতে এখন পর্যন্ত আক্রান্তের সংখ্যা এক কোটি ৯৫ লাখ ৪৮ হাজার ছাড়িয়ে গেছে। মৃতের সংখ্যা সাত লাখ ২৪ হাজারের বেশি। তবে সুস্থ রোগীর সংখ্যা এক কোটি সাড়ে ২৫ লাখ প্রায়। বাংলাদেশে করোনাভাইরাস প্রথম শনাক্ত হয় গত ৮ মার্চ। আর এতে প্রথম মৃত্যু হয় ১৮ মার্চ।

রিয়াদ থেকে বিমানের বিশেষ ফ্লাইট আজ

ঢাকা অফিস ॥ সৌদি আরবে আটকে পড়া প্রবাসী বাংলাদেশিদের ফিরিয়ে আনতে আজ রোববার রিয়াদে বিশেষ ফ্লাইট পরিচালনা করবে বিমান বাংলাদেশ এয়ারলাইন্স। বিজি-৪১৪০ ফ্লাইটটি রিয়াদ থেকে যাত্রী নিয়ে রোববার ঢাকায় ফিরবে। গতকাল শনিবার এ তথ্য জানিয়েছে সংস্থাটি। তথ্য মতে, রিয়াদ থেকে ঢাকায় বিজনেস শ্রেণির ভাড়া দুই হাজার ৯৫০ সৌদি রিয়াল। শিশুদের ক্ষেত্রে ১২ বছরের নিচে মূল ভাড়ার ৭৫ শতাংশ ও ট্যাক্স। দুই বছরের নিচে শিশুদের মূল ভাড়ার ২৫ শতাংশ ও ট্যাক্স। ফ্রি ব্যাগেজ মোট ৫৫ কেজি ও হাতব্যাগ সাত কেজি আনতে পারবেন যাত্রীরা। ইকোনমি শ্রেণিতে ভাড়া দুই হাজার ৫০ সৌদি রিয়াল। ১২ বছরের নিচে শিশুদের ক্ষেত্রে মূল ভাড়ার ৭৫ শতাংশ ও ট্যাক্স। দুই বছরের নিচে শিশুদের মূল ভাড়ার ২৫ শতাংশ ও ট্যাক্স। ফ্রি ব্যাগেজ দুই পিস ৪৫ কেজি ও হাতব্যাগ এক পিস সাত কেজি বহন করতে পারবেন যাত্রীরা। বিশেষ এক্সেস ব্যাগেজ এক পিস ২৩ কেজি আনতে ৪০০ সৌদি রিয়াল পরিশোধ করতে হবে। জেদ্দা থেকে ১৪ আগস্ট: করোনা ভাইরাস মহামারিতে সৌদি আরবে আটকে পড়া প্রবাসীদের ফিরিয়ে আনতে আগামী ১৪ আগস্ট জেদ্দায় বিশেষ ফ্লাইট পরিচালনা করবে বিমান বাংলাদেশ এয়ারলাইন্স। গতকাল শনিবার এ তথ্য জানিয়েছে সংস্থাটি। বিমান জানিয়েছে, জেদ্দা থেকে ঢাকায় বিজনেস শ্রেণির আসনের এডাল্ট ভাড়া তিন হাজার ২০০ সৌদি রিয়াল। চাইল্ড (১২ বছরের নিচে) মূল ভাড়ার ৭৫ শতাংশ ও ট্যাক্স। ইনফ্যান্ট (দুই বছরের নিচে) মূল ভাড়ার ২৫ শতাংশ ও ট্যাক্স। ফ্রি ব্যাগেজ দুই পিস সর্বমোট ৫০ কেজি ও হাত ব্যাগ এক পিস সাত কেজি। ইকোনমি শ্রেণির আসনে এডাল্ট ভাড়া দুই হাজার ২০০ সৌদি রিয়াল। চাইল্ড (১২ বছরের নিচে) মূল ভাড়ার ৭৫ শতাংশ ও ট্যাক্স, ইনফ্যান্ট (দুই বছরের নিচে) মূল ভাড়ার ২৫ শতাংশ ও ট্যাক্স। ফ্রি ব্যাগেজ দুই পিস সর্বমোট ৮০ কেজি ও হাত ব্যাগ এক পিস সাত কেজি। বিশেষ এক্সেস ব্যাগেজ এক পিস ২৩ কেজি। এজন্য ৪০০ সৌদি রিয়াল পরিশোধ করতে হবে। বিমানের ওয়েবসাইটে বলা হয়, টিকিট ক্রয়ের জন্য বিমানের ওয়েবসাইটে অনলাইনে রেজিস্ট্রেশন করতে হবে। শুধুমাত্র বিমান জেদ্দা অফিস থেকে রেজিস্ট্রারকৃত যাত্রীরা অরিজিনাল পাসপোর্ট, ইকামা/ঊীরঃ-জব বহঃৎু দেখিয়ে টিকিট ক্রয় করতে পারবেন। এজন্য নিম্নোক্ত নম্বরে +৯৬৬ ১২ ৬৬৫৩০২৩, +৯৬৬ ১২ ৬৬৫২৭৩৩, +৯৬৬ ১২ ৬৬৫২৯৪৮ ও +৯৬৬ ১২ ৬৬৫২৮০২ যোগাযোগ করতে বলা হয়েছে। সৌদি আরব ও বাংলাদেশের সব স্বাস্থ্যবিধি অনুসরণ করে ভ্রমণ করতে হবে বলেও জানিয়েছে বিমান।

বঙ্গমাতা শেখ ফজিলাতুন্নেছা মুজিব-এঁর জন্মবার্ষিকী সভায় এমপি বাদশা

বঙ্গবন্ধু ও বঙ্গমাতা একে অপরের অবিচ্ছেদ্য অংশ

শরীফুল ইসলাম ॥ কুষ্টিয়া-১ দৌলতপুর আসনের সংসদ সদস্য এ্যাড. আ. কা. ম. সরওয়ার জাহান বাদশা বলেছেন, বঙ্গবন্ধু ও বঙ্গমাতা একে অপরের অবিচ্ছেদ্য অংশ। বঙ্গমাতা শেখ ফজিলাতুন্নেছা মুজিবের নীতি আদর্শ পরামর্শ এবং দক্ষ দিক নির্দেশনায় বঙ্গবন্ধু এদেশের মানুষকে মুক্তির পথ দেখিয়েছেন। বঙ্গমাতার প্রাতিষ্ঠানিক শিক্ষার সুযোগ না হলেও তিনি ছিলেন দক্ষ স্বশিক্ষিত একজন সুশিক্ষিত নারী। অনেক কঠিন সময়ে কঠিন সিদ্ধান্ত দিয়েছেন তিনি জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানকে। বাঙ্গালীর মুক্তির সনদ বঙ্গবন্ধুর ৬ দফা আন্দোলনেও বঙ্গমাতা শেখ ফজিলাতুন্নেছা মুজিবের সাহসী ভূমিকা ছিল। ঐতিহাসিক ৭মার্চের ভাষনের পূর্বে বঙ্গবন্ধুকে সাহসী দিক নির্দেশনা দিয়েছিলেন বঙ্গমাতা শেখ ফজিলাতুন্নেছা। তাই কোনদিনই বঙ্গমাতার অবদানের কথা জাতি ভুলবেনা। দৌলতপুরে বঙ্গমাতা শেখ ফজিলাতুন্নেছা মুজিব-এঁর ৯০তম জন্মবার্ষিকী উপলক্ষে আলোচনা সভা ও সেলাই মেশিন বিতরণ অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে এমপি বাদশাহ্ এসব কথা বলেন। গতকাল শনিবার দুপুর ১২টায় দৌলতপুর উপজেলা পরিষদ কনফারেন্স রুমে সক্ষিপ্ত আলোচনা সভা শেষে অস্বচ্ছল নারীদের মাঝে সেলাই মেশিন বিতরণ করা হয়। ‘বঙ্গমাতা ত্যাগ ও সুন্দরের সাহসী প্রতীক’ এই প্রতিপাদ্য নিয়ে বঙ্গমাতা শেখ ফজিলাতুন্নেছা মুজিব এঁর জন্মবার্ষিকীর আলোচনা সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্য রাখেন, কুষ্টিয়া-১ দৌলতপুর আসনের সংসদ সদস্য এ্যাড. আ. কা. ম. সরওয়ার জাহান বাদশা। দৌলতপুর উপজেলা নির্বাহী অফিসার (ভারপ্রাপ্ত) মো. আজগর আলীর সভাপতিত্বে আলোচনা সভায় বিশেষ অতিথির বক্তব্য রাখেন, উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান এ্যাড. এজাজ আহমেদ মামুন। দৌলতপুর উপজেলা প্রশাসন ও উপজেলা মহিলা বিষয়ক কর্মকতার কার্যালয়ের আয়োজনে বঙ্গমাতা শেখ ফজিলাতুন্নেছা মুজিব জন্মবার্ষিকীর আলোচনা সভা ও সেলাই মেশিন বিতরণ অনুষ্ঠানে অন্যান্যদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন, দৌলতপুর উপজেলা পরিষদের ভাইস চেয়ারম্যান সাক্কির আহমেদ, সোনালী খাতুন আলেয়া, দৌলতপুর কলেজের অধ্যক্ষ মো. ছাদিকুজ্জামান খান সুমন, দৌলতপুর উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডা. মো. তৌহিদুল ইসলাম তুহিন, ডা. আবু সাঈদ, দৌলতপুর প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা মো. আব্দুল হান্নান, দৌলতপুর ইউপি চেয়ারম্যান মহিউল ইসলাম মহি, দৌলতপুর ছাত্রলীগের সাবেক সভাপতি সরদার আতিয়ার রহমান আতিক, দৌলতপুর যুবলীগের সাধারণ সম্পাদক আব্দুল কাদেরসহ উপজেলা পরিষদের বিভিন্ন দপ্তরের কর্মকর্তা ও আমন্ত্রিত সুধীজন। শেষে  ৬জন অস্বচ্ছল নারীর হাতে সেলাই মেশিন তুলে দেন অনুষ্ঠানের প্রধান অতিথিসহ অন্যান্য অতিথিবৃন্দ।

মুজিবনগর স্মৃতিসৌধে পররাষ্ট্রমন্ত্রীর শ্রদ্ধা নিবেদন

মেহেরপুর প্রতিনিধি ॥ ঐতিহাসিক মেহেরপুরের মুজিবনগর স্মৃতিসৌধে পুস্পমাল্য অর্পণের মাধ্যমে শ্রদ্ধা জানিয়েছেন পররাষ্ট্রমন্ত্রী ড. এ কে আব্দুল মোমেন। গতকাল শনিবার সকাল ১০টার দিকে তিনি সড়ক পথে মুজিবনগর পৌঁছান। এরপর তিনি স্থানীয় আ.লীগের নেতৃবৃন্দদের সাথে নিয়ে মুজিবনগর স্মৃতি সৌধে পুস্পমাল্য অর্পণ করেন। এসময় উপস্থিত ছিলেন মেহেরপুর-১ আসনের সাবেক সংসদ সদস্য জয়নাল আবেদীন, মেহেরপুর জেলা আ.লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক এডভোকেট ইব্রাহীম শাহীনসহ আ.লীগ ও তার অঙ্গসংগঠনের নেতৃবন্দ। পরে পররাষ্ট্রমন্ত্রী মুজিবনগর কমপ্লেক্স পরিদর্শন করেন। এর আগে সড়ক পথে পররাষ্ট্রমন্ত্রী সড়ক পথে গত শুক্রবার রাত ৮টার দিকে মেহেরপুর সার্কিট হাউসে পৌঁছালে তাকে ফুল দিয়ে শ্রদ্ধা নিবেদন করেন মেহেরপুর জেলা প্রশাসক ড. মোহাম্মদ মুনসুর আলম খান। এসময় উপস্থিত ছিলেন মেহেরপুর পুলিশ সুপার এসএম মুরাদ আলী।

বঙ্গমাতার জন্মবার্ষিকীতে কুষ্টিয়া জেলা প্রশাসনের সেলাই মেশিন বিতরণ

নিজ সংবাদ ॥ বঙ্গমাতা ত্যাগ ও সুন্দরের সাহসী প্রতীক” এই প্রতিপাদ্যকে সামনে  রেখে জেলা প্রশাসন, কুষ্টিয়া ও মহিলা বিষয়ক অধিদপ্তর, কুষ্টিয়া কর্তৃক আয়োজিত বঙ্গমাতা শেখ ফজিলাতুন নেছা মুজিবের ৯০তম জন্মবার্ষিকী উপলক্ষ্যে “আলোচনা সভা ও সেলাই মেশিন বিতরণ অনুষ্ঠান” জেলা প্রশাসকের সম্মেলন কক্ষে অনুষ্ঠিত হয়। অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি ছিলেন কুষ্টিয়ার স্থানীয় সরকার বিভাগের উপ-পরিচালক মৃনাল কান্তি দে। অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন কুষ্টিয়ার অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (সার্বিক)  লুৎফুন নাহার, সদর উপজেলা পরিষদ  চেয়ারম্যান ও শহর আওয়ামীলীগের সাধারন সম্পাদক আতাউর রহমান আতা সহ সংশ্লিষ্ট ব্যক্তিবর্গ।

ঘুমের ঘোরে ছিলেন চালক, চুয়াডাঙ্গায় বাসচাপায় নিহত ৬

চুয়াডাঙ্গা প্রতিনিধি ॥ চুয়াডাঙ্গা সদর উপজেলার সরোজগঞ্জ বাজারে চট্টগ্রাম থেকে ছেড়ে আসা যাত্রীবাহী নৈশকোচ রয়েল এক্সপ্রেসের ধাক্কায় ছয়জনের মৃত্যু হয়েছে। চালকের ঘুমের কারণে আধা কিলোমিটার সড়কজুড়ে তান্ডব চালিয়েছে নৈশকোচটি। ঘুমের ঘোরে বাস চালানোর কারণে চালকের ভুলে প্রাণ যায় ছয়জনের। এ ঘটনায় আহত হয়েছেন আরও তিনজন। গতকাল শনিবার সকাল সাড়ে ৬টার দিকে এ দুর্ঘটনা ঘটে। স্থানীয়রা জানান, চট্টগ্রাম থেকে মাত্র একজন চালকই নৈশকোচটি চালিয়ে নিয়ে আসছিলেন। দীর্ঘ ১২-১৪ ঘণ্টা বাস চালানোর কারণে তিনি ঘুমে আচ্ছন্ন হয়ে পড়েন। আর এ জন্যই দুর্ঘটনাটি ঘটেছে। স্থানীয়রা ওই নৈশকোচের চালক, তত্ত্বাবধায়ক এবং চালকের সহকারীর দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি দাবি করেছেন। নিহতরা হলেন- চুয়াডাঙ্গা সদর উপজেলার ভান্ডাদুয়া গ্রামের নিতাই হালদারের ছেলে ষষ্টি হালদার (৪০), খাড়াগুদা গ্রামের মাহতাব উদ্দিনের ছেলে মিলন হোসেন (৩০), তিতুদহ গ্রামের পিয়াস আলীর ছেলে রাজু আহমেদ (৩৫), একই গ্রামের লুতা মন্ডলের ছেলে সোহাগ হোসেন (২৮), হায়দার আলীর ছেলে কালু মন্ডল (৪০) এবং রহিম মন্ডলের ছেলে শরিফ হোসেন (৪০)। নিহতরা আলমসাধু, পাখিভ্যান এবং মোটরসাইকেলের আরোহী ছিলেন। অপরদিকে আহতরা হলেন- সদর উপজেলার সরোজগঞ্জ বাজারের বজলুর রহমানের ছেলে পথচারী বাবলুর রহমান (৩৫), তিতুদহ গ্রামের আলমসাধু আরোহী খোদাবক্স আলীর ছেলে আকাশ হোসেন (২৮) এবং রহিম মন্ডলের ছেলে জুম্মাত আলী (৩০)। আহতদেরকে স্থানীয়রা দ্রুত উদ্ধার করে চুয়াডাঙ্গা সদর হাসপাতালে ভর্তি করেছেন। খবর পেয়ে চুয়াডাঙ্গার অতিরিক্ত পুলিশ সুপার আবু তারিকসহ পুলিশের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা ঘটনাস্থল পরিদর্শন করছেন। প্রত্যক্ষদর্শী স্থানীয় সাংবাদিক মো. জিয়া উদ্দিন জানান, যাত্রীবাহী নৈশকোচ রয়েল এক্সপ্রেস চট্টগ্রাম থেকে গত শুক্রবার সন্ধ্যায় চুয়াডাঙ্গার দর্শনার উদ্দেশ্যে ছেড়ে আসে। গতকাল শনিবার সকাল সাড়ে ৬টার দিকে চুয়াডাঙ্গার সরোজগঞ্জ বাজারে পৌঁছালে যাত্রীবাহী নৈশকোচটি প্রথমে একটি আলমসাধুকে ধাক্কা দেয়। এরপর পর্যায়ক্রমে পাখিভ্যান, মোটরসাইকেল ও আরও একটি আলমসাধুসহ সাতজন পথচারীকে ধাক্কা দেয়। সরোজগঞ্জ বাজার থেকে মিতালী সিনেমা হল পর্যন্ত আধা কিলোমিটার রাস্তার মধ্যে এ দুর্ঘটনা ঘটেছে। এতে ঘটনাস্থলেই পাঁচজনের মৃত্যু হয়। পরে চুয়াডাঙ্গা সদর হাসপাতালে নেয়ার পর একজনের মৃত্যু হয়েছে। নিহতরা আলমসাধু, পাখিভ্যান এবং মোটরসাইকেলের আরোহী ছিলেন। নিহতের সংখ্যা আরও বাড়তে পারে। চুয়াডাঙ্গা সদর থানা পুলিশের ওসি আবু জিহাদ মো. ফখরুল ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত বলেন, ঘটনার সঙ্গে সঙ্গে পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়েছে। আহতদের উদ্ধার করে হাসপাতালের ভর্তি করেছি। তিনি বলেন, আলমসাধু, পাখিভ্যান, মোটরসাইকেল সঠিক পথ দিয়ে যাচ্ছিল। কিন্তু নৈশকোচটি ভুল পথে গিয়ে তাদেরকে ধাক্কা দিয়েছে। ইতোমধ্যে নৈশকোচটি আটক করা হয়েছে। নৈশকোচের চালক ও সহকারীকে গ্রেফতার করতে পুলিশ অভিযান চালাচ্ছে।

 

একাদশ শ্রেণিতে ভর্তি আবেদন শুরু হচ্ছে আজ

ঢাকা অফিস ॥ আজ রোববার থেকে শুরু হতে যাচ্ছে ২০২০-২০২১ শিক্ষাবর্ষে একাদশ শ্রেণিতে অনলাইন ভর্তি আবেদন। তিনটি ধাপে অনলাইন আবেদন কার্যক্রম রোববার শুরু হয়ে আগামী ২০ আগস্ট পর্যন্ত চলবে। তবে ১৫ আগস্ট জাতীয় শোক দিবসে অনলাইন সার্ভিস ও কল সেন্টার বন্ধ থাকবে বলে আন্তঃশিক্ষা সমন্বয়ক বোর্ড থেকে জানা গেছে। বোর্ড থেকে বলা হয়েছে, ভর্তি আবেদন ফি পরিশোধ করার সময় এবং প্রথমবার আবেদনের সময় শিক্ষার্থীকে একটি মোবাইল নম্বর (নিজের/অভিভাবকের) দিতে হবে, যেটি শিক্ষার্থীর যোগাযোগ নম্বর হিসেবে বিবেচিত হবে। যোগাযোগ নম্বরটি শিক্ষার্থীর জন্য অতীব গুরুত্বপূর্ণ কেননা পরবর্তীতে শিক্ষার্থীর সকল যোগাযোগ ও আবেদনের জন্য এটির প্রয়োজন হবে। আবেদন করার সময় কলেজের পছন্দক্রম বিশেষ বিবেচনাপূর্বক সাবধানে পূরণ করতে বলা হয়েছে। বলা হয়েছে, এসএসসি/সমমান পরীক্ষায় প্রাপ্ত জিপিএ-র ভিত্তিতে শিক্ষার্থীদের মেধাক্রম নির্ধারণ করা হবে। সমান জিপিএপ্রাপ্তদের ক্ষেত্রে ধারাবাহিক মূল্যায়ন (ঈড়হঃরহঁড়ঁং অংংবংংসবহঃ) ব্যতীত মোট প্রাপ্ত নম্বরের ভিত্তিতে মেধাক্রম নির্ধারণ করা হবে। ভর্তির ফলাফল তিনটি পর্যায়ে প্রক্রিয়াকরণ করা হবে। একজন শিক্ষার্থীকে তার মেধা, কোটা (প্রযোজ্য ক্ষেত্রে) ও পছন্দ ক্রমানুযায়ী একটি মাত্র কলেজের জন্য নির্বাচন করা হবে। নির্বাচিত শিক্ষার্থী নিজেই অনলাইনে বোর্ডের রেজিস্ট্রেশন ও অন্যান্য ফি বাবদ ২০০ টাকা জমা দিয়ে প্রাথমিক ভর্তি নিশ্চায়ন করবে। একজন শিক্ষার্থী সর্বোচ্চ দুইবার স্বয়ংক্রিয়ভাবেকৃত মাইগ্রেশনের জন্য বিবেচিত হবে। এ ক্ষেত্রে মাইগ্রেশন সর্বদাই শিক্ষার্থীর পছন্দ ক্রমানুসারে উপরের দিকে যাবে। যেভাবে আবেদন করা যাবে- চলতি বছর একাদশ শ্রেণিতে ভর্তির শিক্ষার্থীরা শুধুমাত্র অনলাইনে আবেদনের সুযোগ পাচ্ছেন। শিক্ষার্থীদের অগোচরে আবেদন করিয়ে নেয়া বন্ধ করতে চলতি বছর এসএমএসের মাধ্যমে আবেদন প্রক্রিয়া বন্ধ করা হয়েছে। িি.িীরপষধংংধফসরংংরড়হ.মড়া.নফ -এ ওয়েবসাইটে গিয়ে অনলাইনে আবেদন করতে হবে। একজন সর্বোচ্চ ১০টি প্রতিষ্ঠানে আবেদন করতে পারবেন। শিক্ষার্থীকে তার এসএসসি ও সমমানের পরীক্ষার রোল নম্বর, বোর্ড, পাসের সাল উল্লেখ করে আবেদন করতে হবে। অর্থ জমা দিতে হবে যেভাবে- একদশ শ্রেণিতে ভর্তির ক্ষেত্রে অনলাইনে একজন শিক্ষার্থী সর্বনিম্ন ৫টি কলেজে এবং সর্বোচ্চ ১০টি কলেজে আবেদন করতে পারবে। তবে একই প্রতিষ্ঠানের একাধিক শিফট/ভার্সন/গ্রুপে আবেদন করা যাবে। আবেদনের জন্য ১৫০ টাকা টাকা ফি পরিশোধ করতে হবে। এ অর্থ নগদ/সোনালী ব্যাংক/টেলিটক/বিকাশ/শিওর ক্যাশ/রকেট এর মাধ্যমে সার্ভিস চার্জসহ প্রদান করতে হবে।