রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা তৈরিতে সক্ষম জনসনের ভ্যাকসিন

ঢাকা অফিস ॥ করোনাভাইরাসের সম্ভাব্য ভ্যাকসিন মানবদেহে পরীক্ষামূলক প্রয়োগ শুরু করেছে বৃহত্তম ফার্মাসিউটিক্যাল কোম্পানি জনসন অ্যান্ড জনসন। যুক্তরাষ্ট্রে বড় পরিসরে ৬০ হাজার স্বেচ্ছাসেবীর দেহে তৃতীয় ধাপের ট্রায়াল চালাচ্ছে সংস্থাটি। এদিকে, জনসনের পক্ষ থেকে বলা হয়েছে, পরীক্ষামূলক প্রয়োগে জনসনের এই ভ্যাকসিন শক্তিশালী রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা তৈরিতে সক্ষম হয়েছে। খবর রয়টার্সের। শুক্রবার সংস্থাটির একটি অন্তবর্তীকালীন ফলাফল প্রকাশ করা হয়েছে। ওই ফলাফল অনুযায়ী, করোনার এই সম্ভাব্য ভ্যাকসিনের প্রথম এবং দ্বিতীয় দুই ধাপেই আশানুরূপ ফলাফল এসেছে। দু’টি ধাপেই দেখা গেছে যে, এই ভ্যাকসিন রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা তৈরি করতে কার্যকর। করোনা সংক্রমণ থেকে মানবজাতিকে রক্ষা করতে বিশ্বজুড়ে বেশ কয়েকটি ভ্যাকসিনের ট্রায়াল চলছে। শুক্রবার প্রকাশিত জনসনের ভ্যাকসিনের ফলাফল সম্পর্কে এক বিবৃতিতে বলা হয়েছে, এডি২৬.কোভ২.এস নামের এই ভ্যাকসিনের দুটি আলাদা ডোজ দেওয়া হয়েছে। এতে ভালো ফল পাওয়া গেছে। ভ্যাকসিনে একটি ডোজ বা দুটি ডোজের মধ্যে কী ধরনের পার্থক্য হচ্ছে তা পরীক্ষা করে দেখছে মডার্না ও ফাইজার নামের দুটি কোম্পানি। জনসন অ্যান্ড জনসনের এই ভ্যাকসিন অল্প বয়স্কদের শরীরে যতটা কার্যকর হবে ততটাই বয়স্কদের শরীরেও হবে কিনা সে বিষয়টি এখনও পরিষ্কার নয়। গত জুলাই মাসে জনসন অ্যান্ড জনসন তাদের তৈরি করোনার সম্ভাব্য ভ্যাকসিন সামনে আনে। প্রথমে বানরের দেহে এই ভ্যাকসিন প্রয়োগ করা হয়। ওই পরীক্ষায় ভাল ফল পাওয়ার পর যুক্তরাষ্ট্রের প্রায় এক হাজার প্রাপ্ত বয়স্কের দেহে এই ভ্যাকসিন প্রয়োগ করা হয়।প্রাথমিক ট্রায়ালে ফলাফল ভালো পাওয়া গেছে বলে দাবি করেছে জনসন। এই ফলাফলের উপর নির্ভর করে বুধবার থেকেই ৬০ হাজার স্বেচ্ছাসেবীর ওপর ভ্যাকসিনের ট্রায়াল শুরু করেছে জনসন। এই ট্রায়ালকে তৃতীয় পর্যায়ের ট্রায়াল বলে উল্লেখ করা হয়েছে। চলতি বছরের শেষে কিংবা আগামী বছরের শুরুতেই এই ট্রায়ালের ফল পাওয়া যাবে বলে জানিয়েছে সংস্থাটি। জনসনের ভ্যাকসিন গ্রুপের চিফ সায়েন্টিফিক কর্মকর্তা পল স্টোফেলস জানিয়েছেন, তৃতীয় ধাপের এই পরীক্ষা থেকে এই ভ্যাকসিনটি কতটা কার্যকরী ও নিরাপদ তা জানা যাবে। আগামী বছর এই ভ্যাকসিনের ১ বিলিয়ন ডোজ উৎপাদন করা যাবে বলে আশা প্রকাশ করেছেন তিনি। যুক্তরাষ্ট্রে আরও তিনটি ভ্যাকসিন চলতি গ্রীষ্মের শুরুতেই তাদের ট্রায়াল শুরু করেছে। তবে জনসনের তৈরি সম্ভাব্য ভ্যাকসিনটি অন্যান্যের চেয়ে আলাদা। এর বেশ কয়েকটি সুবিধা রয়েছে যা এটি নিরাপদ এবং কার্যকর প্রমাণিত হলে প্রশাসনিক পরিচালনা এবং বিতরণ করা আরও সহজ করে তুলতে পারে। জনসন অ্যান্ড জনসনের ভ্যাকসিনের ট্রায়ালের কাজে নিযুক্ত গবেষকরা জানিয়েছেন, ৯৮ শতাংশ স্বেচ্ছাসেবীর দেহে অ্যান্টিবডি তৈরি হয়েছে। এই অ্যান্টিবডি ভাইরাসের বিরুদ্ধে লড়াই করতে সক্ষম। ভ্যাকসিন দেওয়ার ২৯ দিন পর এই অ্যান্টিবডি তৈরি হয়েছে বলে জানিয়েছেন তারা। তবে ৬৫ বছরের বেশি বয়স্ক মানুষদের মধ্যে মাত্র ১৫ জনের শরীরে অ্যান্টিবডি তৈরি হয়েছে বলে জানা গেছে। তরুণদের তুলনায় এই সংখ্যা অনেকটাই কম। এই ভ্যাকসিনের ট্রায়ালে দেখা গেছে, ৬৫ বছরের বেশি বয়স্কদের মধ্যে ৩৬ শতাংশ স্বেচ্ছাসেবীর দেহে ভ্যাকসিনের পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া যেমন মাথা ধরা ও পেশিতে ব্যথা দেখা গেছে। তবে অল্প বয়স্কদের মধ্যে সেটা ৬৪ শতাংশের শরীরে দেখা গেছে। এ থেকেই বোঝা যাচ্ছে, ভ্যাকসিনের প্রভাব অল্প বয়স্কদের শরীরে বেশি হচ্ছে। অবশ্য এখনও এই ট্রায়াল শেষ হয়নি। সব ফলাফল হাতে এলেই এ বিষয়টি পরিষ্কার হবে বলে জানিয়েছেন গবেষকরা। এদিকে, করোনার এই সম্ভাব্য ভ্যাকসিনের একটি শটেই রোগ প্রতিরোধ শক্তি তৈরি হবে বলে দাবি করেছেন বিজ্ঞানী পল। তিনি বলছেন, জনসনের বানানো ভ্যাকসিনের একটি ডোজই দেওয়া হবে স্বেচ্ছাসেবীদের। আর এই ডোজের মাত্রা এমনভাবেই ঠিক করা হয়েছে যাতে একটি শটেই শরীরে পর্যাপ্ত অ্যান্টিবডি তৈরি হয়। তিনি বলেন, এই ডোজে রক্তের টি-লিম্ফোসেইট কোষও সক্রিয় হবে। এই টি-কোষ সংক্রামিত কোষকে নষ্ট করে দিতে পারে। টি-কোষ অ্যাকটিভ হলে শরীরে রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বৃদ্ধি পায়। বায়োমেডিক্যাল অ্যাডভান্সড রিসার্চ অ্যান্ড ডেভেলপমেন্ট অথরিটির (বিএ আরডিএ) যৌথ উদ্যোগে এই ভ্যাকসিন তৈরি করছে জনসন অ্যান্ড জনসনের রিসার্চ উইং জনসেন ফার্মাসিউটিক্যাল কোম্পানি।

কুষ্টিয়ার আব্দালপুর গ্রামে বজ্রপাতে বৃদ্ধার মৃত্যু

নিজ সংবাদ ॥ কুষ্টিয়া সদর উপজেলার আব্দালপুর ইউনিয়নে বজ্রপাতে এক বৃদ্ধার মৃত্যু হয়েছে। ঘটনা সূত্রে জানা যায়, আব্দালপুর গ্রামের বাজার পাড়ার খাদিমুল বিশ্বাস খাদি (৬৫) সকালে মাঠে যায়, দুপুর আনুমানিক ১২ ঘটিকার সময় বজ্রপাতে তার মৃত্যু হয় (ইন্না-লিল্লাহি ওয়া ইন্নাইলাহি রাজিউন)। তার মৃত্যুতে এলাকায় শোকের ছায়া নেমে আসে। মৃত্যুকালে তিনি দুই  ছেলে, এক মেয়ে ও তার স্ত্রীকে রেখে গেছেন, পৃথিবীর মায়া ত্যাগ করে চির বিদায় নেয়। হঠাৎ আকস্মিক মৃত্যু অনেকে মেনে নিতে পারে নাই। দুর দুরান্ত থেকে বন্ধু-বান্ধব, আত্মীয় স্বজন ছুটে আসেন এক নজর দেখার জন্য।  এদিকে মরহুমের জানাযা নামাজ বাদ মাগরিব অনুষ্ঠিত হয়। মরহুমের জনাযা নামাজে অন্যান্যর মধ্যে উপস্থিত ছিলেন আব্দালপুর ইউনিয়ন আওয়ামীলীগের সাধারন সম্পাদক গোলাম মোস্তফা, সদর উপজেলা আওয়ামীলীগের সাবেক বন ও পরিবেশ বিষয়ক সম্পাদক শহিদুল ইসলাম ও সিনিয়র  সদস্য জমির উদ্দিন সহ প্রায় এক হাজার স্বজনেরা অংশগ্রহন করেন। প্রয়াত খাদিমুল বিশ্বাস খাদি’র পরিবার তার আত্মার মাগফিরাত কামনা করে সকলের কাছে দোয়া  চেয়েছেন।

মিরপুরে দেশীয় অস্ত্রসহ আটক ৩

আমলা অফিস ॥ কুষ্টিয়ার মিরপুরে দেশীয় অস্ত্রসহ তিন জনকে আটক করেছে পুলিশ। পুলিশের দাবী এসময় তাদের কাছ থেকে দেশীয় অস্ত্র উদ্ধার করা হয়। গতকাল শুক্রবার বিকেলে তাদের বিরুদ্ধে মামলা দায়েরপূর্বক জেল হাজতে প্রেরণ করেছে মিরপুর থানা পুলিশ। আটককৃতরা হলেন- কুষ্টিয়ার মিরপুর উপজেলার বারুইপাড়া ইউনিয়নের গৌড়দহ এলাকার শহিদুল ইসলামের ছেলে সাবেক ছাত্রলীগ নেতা এস কে চঞ্চল (২৫), একই এলাকার মৃত আকমল হোসেনের ছেলে খোকন আহম্মদ (৩৩) এবং ফুলবাড়ীয়া ইউনিয়নের গেটপাড়া গ্রামের আয়নাল হকের ছেলে রনি ইসলাম ওরফে ড্যানী (২৪)। মামলার এজাহার সুত্রে জানা যায়, বৃহস্পতিবার দিবাগত রাতে মিরপুর থানা পুলিশের বিশেষ অভিযানে আটককৃতদের বাড়ীতে অভিযান চালায় পুলিশ। এসময় এস কে চঞ্চল, খোকন আহম্মদ ও রনি ইসলাম ওরফে ড্যানী এর শয়ন কক্ষ থেকে দেশীয় অস্ত্র উদ্ধার করে পুলিশ। এসময় তাদের আটক করে পুলিশ। মামলার বাদী মিরপুর থানা পুলিশের এসআই পার্থ শেখর ঘোষ এজাহারে আরো উল্লেখ করেন উক্ত আসামীরা এলাকায় প্রভাব খাটিয়ে জোর পূর্বক জমি দখল, এলাকায় প্রভাব বিস্তার এবং নওয়াপাড়া বাজারে প্রভাব খাটিয়ে অনৈতিক সুবিধা নিয়ে আসছিলো। তাদের বিরুদ্ধে এমন অভিযোগ দীর্ঘদিনের ছিলো। তাদের বিরুদ্ধে মিরপুর থানায় জিডিও রয়েছে। মিরপুর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আবুল কালাম জানান, আটকৃতদের বিরুদ্ধে মামলা দায়ের পূর্বক তাদের শুক্রবার বিকেলে জেল হাজতে প্রেরণ করা হয়েছে।

শেখ হাসিনার জন্মদিন উপলক্ষে আ. লীগের কর্মসূচি ঘোষণা

ঢাকা অফিস ॥ আওয়ামী লীগ সভাপতি ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার জন্মদিন উপলক্ষে কর্মসূচি ঘোষণা করেছে ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগ। গতকাল শুক্রবার বঙ্গবন্ধু এভিনিউয়ে আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে এক সভা শেষে দলটির সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের এ কর্মসূচি ঘোষণা করেন। তিনি বলেন, ২৭ সেপ্টেম্বর আওয়ামী লীগের ত্রাণ ও সমাজকল্যাণ উপ-কমিটির আয়োজনে আলোচনা সভা ও কিছু ত্রাণ বিতরণ কর্মসূচি রয়েছে। আগামী ২৮ সেপ্টেম্বর মহানগর দক্ষিণের সকল মসজিদে দোয়া মাহফিল অনুষ্ঠিত হবে। বিকেল ৩টায় আলোচনা সভা হবে। ৩০ সেপ্টেম্বর বাদ জোহর বায়তুল মোকাররম জাতীয় মসজিদে মিলাদ ও দোয়া মাহফিলের আয়োজন থাকবে। কাদের বলেন, নেত্রীর জন্মদিন উপলক্ষে ৩০ সেপ্টেম্বর এতিমখানায় অসহায় দুস্থদের মাঝে খাবার বিতরণ করা হবে। মহানগর আওয়ামী লীগের কর্মসূচি রয়েছে।

দৌলতপুর সীমান্তে দু’পক্ষের সংঘর্ষে আহত-৮ : আটক-১

দৌলতপুর প্রতিনিধি ॥ কুষ্টিয়ার দৌলতপুর সীমান্তে পূর্ব বিরোধের জের ধরে দু’পক্ষের সংঘর্ষে অন্তত ৮জন আহত হয়েছে। গতকাল শুক্রবার সন্ধ্যা সাড়ে ৬টার দিকে উপজেলার প্রাগপুর ইউনিয়নের সীমান্ত সংলগ্ন জামালপুর উত্তরপাড়া গ্রামে সংঘর্ষের এ ঘটনা ঘটে। আহতদের মধ্যে একজনকে কুষ্টিয়া হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। বাকী আহতরা স্থানীয়ভাবে চিকিৎসাধীন রয়েছে। এ ঘটনায় পুলিশ ১জনকে আটক করেছে। স্থানীয় সূত্রে জানাগেছে, পুর্ব বিরোধের জের ধরে নিজাম উদ্দিন ও মতিন বিশ^াসের মধ্যে কথা কাটাকাটির একপর্যায়ে উভয়পক্ষের লোকজন দেশীয় অস্ত্রে সজি¦ত হয়ে সংঘর্ষে জড়িয়ে পড়ে। সংঘর্ষে ধাওয়া পাল্টা ধাওয়া এবং ইট-পাটকেল নিক্ষেপেরে ঘটনা ঘটে। প্রায় ঘন্টাব্যাপী চলা সংঘর্ষে ধারাল অস্ত্র ও লাঠির আঘাতে নিজাম উদ্দিন (৪৫), রুবেল (৩২), সাদ্দাম হোসেন (৩০), নজু বিশ^াস (৪০), মতিন বিশ^াস (৪৫), সুমন (১৮) ও নান্টু (২০) সহ উভয়পক্ষের অন্তত ৮জন আহত হয়। আহতদের মধ্যে সাদ্দাম হোসেনকে আশংকাজনক অবস্থায় কুষ্টিয়া জেনারেল হাসাপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। খবর পেয়ে দৌলতপুর থানা পুলিশ ঘটনাস্থলে উপস্থিত হয়ে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রন করে এবং মতিন বিশ^াস পক্ষের প্রধান মতিনকে আহত অবস্থায় আটক করে থানায় নিয়ে যায়। সংঘর্ষের এ ঘটনায় নিজাম উদ্দিন তার ব্যবসা প্রতিষ্ঠানে হালখাতা চলা অবস্থায় প্রতিপক্ষরা হামলা চালিয়ে হালখাতার টাকা লুট করেছে বলে থানায় অভিযোগ দিয়েছে।

দুর্গাপূজায় তিন দিন সরকারি ছুটি দাবি

ঢাকা অফিস ॥ হিন্দু সম্প্রদায়ের সবচেয়ে বড় ধর্মীয় উৎসব শারদীয় দুর্গাপূজায় তিন দিনের সরকারি ছুটির দাবি জানিয়েছে বাংলাদেশ হিন্দু পরিষদ। গতকাল শুক্রবার জাতীয় প্রেস ক্লাবের সামনে সংগঠনটি আয়োজিত এক মানববন্ধন থেকে এই দাবি জানানো হয়। একইসঙ্গে সাভারের নাবালিকা ছাত্রী নীলা রায় হত্যাকারীদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি এবং সংখ্যালঘু সুরক্ষা আইন বাস্তবায়নের দাবিও জানিয়েছে সংগঠনটি। মানববন্ধনে বাংলাদেশ হিন্দু পরিষদের সভাপতি দীপংকর শিকদার দীপু বলেন, দুর্গাপূজার একদিনের সরকারি ছুটি শুধু ছুটি হিসেবেই গণ্য হয়। এই ছুটিতে আমরা পরিবারের সঙ্গে মিলিত হতে পারি না। আমাদের সবচাইতে বড় এই ধর্মীয় অনুষ্ঠানটিতে সবাই চায় একসঙ্গে পরিবারের সঙ্গে থাকতে। যা একদিনের ছুটিতে সম্ভব না। সাধারণ সম্পাদক সাজন কুমার মিশ্র বলেন, বিশ্বের অন্যান্য রাষ্ট্রের মতো সংখ্যালঘুরা যেন নিরাপদভাবে বসবাস করতে পারে সে দিকে সরকারকে দৃঢ় দৃষ্টি রাখার অনুরোধ করছি। সাভারে স্কুলছাত্রী নীলা রায়কে হত্যার প্রতিবাদ ও দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি দাবি করছি। মিথ্যা ধর্মীয় উস্কানিমূলক মামলা দিয়ে দিয়ে সংখ্যালঘু সম্প্রদারকে হয়রানি না করারও দাবি জানাই। মুখপাত্র সুমন কুমার রায় বলেন, দেশের বিভিন্ন স্থানে বাড়িঘর, মঠ, মন্দির ভাঙচুর, শ্মশান বেদখল, দেশত্যাগে ভয়ভীতি প্রদর্শনের আইনগত ব্যবস্থা নিশ্চিতসহ বিভিন্ন স্থানে ধর্মীয় মিথ্যা মামলায় হিন্দু সম্প্রদায়ের জনগোষ্ঠীকে উদ্দেশ্যমূলকভাবে ফাঁসিয়ে যে চলমান নির্যাতন চলছে, তা অনতিবিলম্বে বন্ধ করতে হবে। মানববন্ধনে আরও উপস্থিত ছিলেন সংগঠনটির উপদেষ্টা সুধীর কান্তি সাহা, সহ-সভাপতি প্রীতিভূষন ভট্টাচার্য এবং সাধারণ সম্পাদক সাজন কুমার মিত্র প্রমুখ।

অবৈধপথে ক্ষমতা দখলে ষড়যন্ত্রের গলি খুঁজছে বিএনপি কাদের

ঢাকা অফিস ॥ আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের বলেছেন, করোনা মহামারির এ সময় বিএনপি-জামায়াত জনগণের পাশে না দাঁড়িয়ে অবৈধপথে, চোরা গলি দিয়ে ক্ষমতায় আসার জন্য ষড়যন্ত্রের অলিগলি খুঁজে বেড়াচ্ছে। দুঃস্বপ্নে তারা বিভোর হয়ে আছে। গণবিরোধী ও দেশবিরোধী কোনো ষড়যন্ত্রে লিপ্ত হলে দেশের জনগণকে সঙ্গে নিয়েই এর দাঁতভাঙা জবাব দেয়া হবে। গতকাল শুক্রবার দলীয় সভাপতি প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার ৭৪তম জন্মদিন উপলক্ষে আওয়ামী লীগের সম্পাদকম-লী, দলের ঢাকা মহানগর শাখা এবং সহযোগী সংগঠনের নেতৃবৃন্দের সঙ্গে এক মতবিনিময়কালে তিনি এসব কথা বলেন। রাজধানীর বঙ্গবন্ধু অ্যাভিনিউর আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে এ মতবিনিময় সভার আয়োজন করা হয়। ওবায়দুল কাদের বলেন, রাষ্ট্রীয় ক্ষমতা দখলের গভীর ষড়যন্ত্রের তথ্য উদঘাটন করেছে গোয়েন্দা সংস্থা। যা ইতোমধ্যে গণমাধ্যমে প্রকাশিত হয়েছে। বিএনপি-জামাত জোট কখনওই জনগণের ইচ্ছার প্রতিনিধিত্ব করতে চায় না। সর্বদাই তাদের ষড়যন্ত্রের রাজনীতি। আস্থা, স্বাধীনতাবিরোধী ও দেশবিরোধী অপশক্তির রাজনীতি। আওয়ামী লীগ এ দেশের মানুষের আবেগ ভালোবাসা আশা-আকাঙ্খা ধারণ করে। কাজে-কর্মে জনগণের ইচ্ছার প্রতিফলন ঘটায়। আওয়ামী লীগ কখনও ষড়যন্ত্রের রাজনীতি করে না। ষড়যন্ত্রের রাজনীতি বরদাশত করে না। কিন্তু বারে বারে আওয়ামী লীগই ষড়যন্ত্রের শিকার হয়। ‘বিএনপি নেত্রী খালেদা জিয়াকে মানবিক কারণে মুক্তি দেয়া হয়েছে’ জানিয়ে তিনি বলেন, বিএনপি-জামাত জোট নেত্রী বেগম খালেদা জিয়া দুর্নীতির দায়ে দন্ডপ্রাপ্ত একজন আসামি। করোনা সংক্রমণকালে প্রধানমন্ত্রী সর্বোচ্চ মানবিকতা ও উদারতার পরিচয় দিয়ে তাকে জামিনে মুক্তির ব্যবস্থা করেন। এই মানবিকতা বা উদারতাকে বিএনপি দুর্বলতা মনে করলে ভুল করবে। আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক বলেন, জনগণের প্রতি আস্থাহীন হয়ে বিএনপি নেতৃবৃন্দ বারবার ভুল করে আসছে বলেই তারা জনগণের দ্বারা প্রত্যাখ্যাত হয়েছে। মহামারির এ সময় তারা জনগণের পাশে না দাঁড়িয়ে অবৈধপথে চোরা গলি দিয়ে ক্ষমতায় আসার জন্য ষড়যন্ত্রের অলিগলি খুঁজে বেড়াচ্ছে। দুঃস্বপ্নে তারা বিভোর হয়ে আছেন। আমরা বিএনপি নেতৃবৃন্দের প্রতি হুঁশিয়ারি উচ্চারণ করে বলতে চাই, গণবিরোধী ও দেশবিরোধী কোনো ষড়যন্ত্রে লিপ্ত হলে দেশের জনগণকে সঙ্গে নিয়েই তার দাঁতভাঙা জবাব দিতে প্রস্তুত আওয়ামী লীগ। দলীয় সভাপতির ৭৩তম জন্মবার্ষিকীতে আমরা এ শপথ গ্রহণ করছি। সাম্প্রদায়িক গোষ্ঠী যাতে আওয়ামী লীগে জায়গা না পায় সেজন্য দল ও সহযোগী সংগঠনের নেতাদের সতর্ক থাকার নির্দেশ দেন ওবায়দুল কাদের। দলের সভাপতিম-লীর সভায় দলীয় সভাপতি প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নির্দেশনার কথা উল্লেখ করে ওবায়দুল কাদের বলেন, দলের দুঃসময়ের ত্যাগী নেতাদের মূল্যায়ন করতে হবে। হঠাৎ করে কেউ দলে এলে তাকে প্রথমেই নেতা বানানো যাবে না। সাম্প্রদায়িক গোষ্ঠীকে কোনও অবস্থাতেই অনুপ্রবেশের সুযোগ দেওয়া হবে না। সব বাধা বিপত্তি ডিঙিয়ে পথ চলাই এদেশের মানুষের চিরায়ত রীতি উল্লেখ করে মন্ত্রী কাদের বলেন, দেশের মানুষ কাজে ফিরতে শুরু করেছে। শেখ হাসিনার নেতৃত্বে জীবনের সঙ্গে জীবিকার চাকা সচল হয়েছে। আওয়ামী লীগ ইতোমধ্যে সীমিত পর্যায়ে সাংগঠনিক কর্মকা- শুরু করেছে। জাতীয় সম্মেলনের আগে পরে ৩১টি সাংগঠনিক জেলার সম্মেলন সম্পন্ন হয়েছে। করোনা সংক্রমনের বাস্তব কারণে পূর্ণাঙ্গ কমিটি গঠনে কিছুটা বিলম্ব হয়েছে। তবে অধিকাংশ পূর্ণাঙ্গ কমিটি কেন্দ্রীয় দফতরে জমা পড়েছে। দলীয় নেতাদের উদ্দেশ্য করে তিনি বলেন, আমি একটা বিষয় পরিষ্কার করে বলতে চাই, কমিটি গঠনে দলের প্রেসিডিয়াম সভায় নেতৃত্বে নির্দেশনা দিয়েছেন। তা মেনেই পূর্ণাঙ্গ কমিটি করতে হবে। দলের দুঃসময়ের ত্যাগী নেতাদের মূল্যায়ন করতে হবে। হঠাৎ করে কেউ দলে এলে তাকে প্রথমেই নেতা বানাতে হবে এমন কোনও কথা নেই। সাম্প্রদায়িক গোষ্ঠীকে কোনও অবস্থাতেই অনুপ্রবেশের সুযোগ দেওয়া হবে না। বিষয়টি আমি আবারও স্মরণ করিয়ে দিচ্ছি: আপনারা যারা কমিটি করেছেন বা করবেন, তাদের এই নির্দেশনাগুলো মেনে চলতে হবে। আসন্ন সাংগঠনিক সফরের কথা উল্লেখ করে তিনি বলেন, আটটি বিভাগের জন্য আটটি টিম, সাংগঠনিকভাবে আমরা প্রস্তুত, নেত্রীর কাছে তালিকা জমা দিয়েছি। অনুমোদন দিলে এই টিমগুলো আমাদের সাংগঠনিক কার্যক্রম পরিচালনা করবে। প্রধানমন্ত্রী ও দলীয় সভাপতি সর্বদা স্বাস্থ্যবিধি মেনে সাংগঠনিক কর্মসূচি পরিচলনা নির্দেশ দিয়েছেন। আওয়ামী লীগের সর্বশেষ সম্মেলনের প্রসঙ্গ টেনে তিনি বলেন, ওই সম্মেলনের পরে আমাদের সামনে ছিল জাতির পিতার জন্মশতবার্ষিকী কিন্তু বৈশ্বিক মহামারি করোনাভাইরাসের আমরা অনেকটা গৃহবন্দি ছিলাম। করোনা প্রাদুর্ভাবের কারণে আমরা শতবার্ষিকীর কর্মসূচি পুনর্বিন্যাস করতে হয়েছে। ১৯৭৪ সালের ২৫ সেপ্টেম্বর জাতিসংঘে বঙ্গবন্ধুর বাংলায় ভাষণ দেওয়ার ঘটনা স্মরণ করে ওবায়দুল কাদের বলেন, এই দিনে জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান জাতিসংঘে দাঁড়িয়ে সাধারণ পরিষদের অধিবেশনে মাতৃভাষা বাংলায় বক্তৃতা করে সারা দুনিয়ার সব বাঙালিকে ধন্য করেন। গৌরবান্বিত করেন। করোনার সংকটের কারণে বঙ্গবন্ধুর জাতিসংঘে বাংলা ভাষণ দেওয়ার দিবসটি যথাযথ মর্যাদায় পালন করতে পারিনি। তিনি বলেন, অদৃশ্য করোনাভাইরাস সংক্রমণ রোধে সচেতনতা বৃদ্ধিসহ স্বাস্থ্যবিধি মানতে দেশের মানুষের সম্মিলিত প্রয়াস ছিল উল্লেখ করার মতো। প্রধানমন্ত্রীর আহ্বানে সারা দেশের মানুষ সাড়া দিয়েছে এবং করোনাকালে তিনি একমাত্র ট্রাস্টেড সিঙ্গেল ফেস হিসেবে দেশে-বিদেশে প্রতিষ্ঠিত হয়েছেন। প্রধানমন্ত্রী মানুষের কষ্ট লাঘবে দিনরাত পরিশ্রম করে যাচ্ছেন। প্রধানমন্ত্রী ও দলীয় সভানেত্রী শেখ হাসিনার নির্দেশে আমরা ঘূর্ণিঝড় আম্ফান ও করোনা মোকাবিলায় সফলভাবে দায়িত্ব পালন করতে পেরেছি। মন্ত্রী বলেন, করোনা সংক্রমণকালে প্রধানমন্ত্রীর সুনিবিড় পর্যবেক্ষণ ও সুনিপুণ ব্যবস্থাপনায় মানুষের দুর্ভোগ লাঘবে অন্যান্য দেশের চেয়ে আমরা তুলনামূলকভাবে অনেক সক্ষম হয়েছি। তিনি দক্ষ নাবিকের মতো দিশেহারা জনগোষ্ঠীকে সুদক্ষ নেতৃত্বের মাধ্যমে পথ দেখিয়েছেন। দেশের মানুষের দুর্ভোগ দুর্দশা লাঘবে ৭৩ বছর পেরিয়েও তিনি অবিরাম ছুটে বেড়িয়েছেন। এই বয়সেও তার গতি অ্যারাবিয়ান হর্স এর মতো। ২৮ সেপ্টেম্বর প্রধানমন্ত্রীর জন্মদিনের প্রসঙ্গ টেনে আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক বলেন, জন্মদিনে কোনও ধরনের আনুষ্ঠানিকতা বঙ্গবন্ধু কন্যার পছন্দ নয়। জন্ম দিবস পালনে নেত্রী তেমন একটা আগ্রহ দেখাচ্ছেন না। এটা পালন করতেও চান না। তারপরও আমাদের এটা দায়িত্ব। শেখ হাসিনার জন্মদিন বাংলাদেশের জন্য একটি ঐতিহাসিক ঘটনা। বঙ্গবন্ধু আমাদের রাজনৈতিক স্বাধীনতার রোল মডেল। হাসিনা আমাদের উন্নয়ন এবং অর্জনের রোল মডেল। বিশ্ব দরবারে তিনি বাংলাদেশকে বিশেষ মর্যাদায় উন্নীত করেছেন। তার জন্মদিন পালন না করলে আমরা জাতির কাছে অকৃতজ্ঞ থেকে যাব। এসময় ওবায়দুল কাদের দলীয় সভাপতি শেখ হাসিনার জন্মদিন উপলক্ষে কর্মসূচি ঘোষণা করেন। আওয়ামী লীগ দিনটি উপলক্ষে সারাদেশের সব মসজিদে দোয়া মাহফিল এবং মন্দির, প্যাগোডা-গির্জাসহ সব উপসানালয় বিশেষ প্রার্থনা এবং সীমিত পরিসরে আলোচনা সভার আয়োজন করবে। ২৮ সেপ্টেম্বর ঢাকা মহানগর দক্ষিণ আওয়ামী লীগের উদ্যোগে কৃষিবিদ ইনস্টিটিউশনে আলোচনা সভার আয়োজন করা হয়েছে উল্লেখ করে তিনি বলেন, সেখানে সবাইকে স্বাস্থ্যবিধি মেনে উপস্থিত হতে হবে। একটি সিট ফাঁকা রেখে অন্য আরেকটি সিটে বসতে হবে। কোনও অবস্থাতে বেশি জনসমাগম করা যাবে না।

কুষ্টিয়া কেন্দ্রীয় জামে মসজিদের ১১১ ফুট উচ্চতা বিশিষ্ট মিনার নির্মাণ কাজের উদ্বোধন

নিজ সংবাদ ॥ কুষ্টিয়া কেন্দ্রীয় জামে মসজিদের ১১১ ফুট উচ্চতা বিশিষ্ট মিনারের নির্মাণ কাজের উদ্বোধন করা হয়েছে। গতকাল শুক্রবার জুম্মার নামাজের পর এই নির্মাণ কাজের উদ্বোধন করেন কুষ্টিয়ার জেলা প্রশাসক আসলাম হোসেন। এসময় উপস্থিত ছিলেন কুষ্টিয়া জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক বীর মুক্তিযোদ্ধা আজগর আলী, কুষ্টিয়া কেন্দ্রীয় জামে মসজিদ কমিটির সহ-সভাপতি হাফিজুর রহমান হেলাল, সাধারণ সম্পাদক হাজী তরিকুল ইসলাম মানিক,  কোষাধ্যক্ষ মকলেছুর রহমান বাবু, দৈনিক সত্যখবর পত্রিকার প্রকাশক ও সম্পাদক হাসিবুর রহমান রিজু। এছাড়াও মসজিদ কমিটির অন্যান্য সদস্যগণসহ মুসুল্লীরা উপস্থিত ছিলেন। ১১১ফুট উচ্চতা বিশিষ্ট মিনারের প্লান ডিজাইন করেন ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয়ের সাবেক প্রধান প্রকৌশলী কে এম আব্দুস সালাম ও পারফেক্ট হোম ডিজাইন এন্ড কনসালটেন্সি’র ব্যবস্থাপনা পরিচালক ও দৈনিক সত্যখবর পত্রিকার সিনিয়র ষ্টাফ রিপোর্টার ইঞ্জিঃ মাহমুদ আল হাফিজ অভি।

জাতিসংঘে বঙ্গবন্ধুর বাংলায় ভাষণ উপলক্ষে স্মারক ডাকটিকিট প্রকাশ

ঢাকা অফিস ॥ জাতিসংঘে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের বাংলায় ভাষণ প্রদান উপলক্ষে ডাক অধিদফতর ১০ টাকা মূল্যমানের একটি স্মারক ডাকটিকিট, ১০ টাকা মূল্যমানের একটি উদ্বোধনী খাম, ৫ টাকা মূল্যমানের একটি ডাটাকার্ড ও একটি বিশেষ সীলমোহর প্রকাশ করছে। গতকাল শুক্রবার ডাক ও টেলিযোগাযোগমন্ত্রী মোস্তাফা জব্বার তার দফতর থেকে স্মারক ডাকটিকিট অবমুক্ত করেন এবং ডাটাকার্ড ও বিশেষ সিলমোহর প্রকাশ করেন। মন্ত্রণালয় থেকে পাঠানো এক প্রেস বিজ্ঞপ্তিতে এসব তথ্য জানানো হয়েছে। ১৯৭৪ সালের ২৫ সেপ্টেম্বর বাংলাদেশ ও বাংলা ভাষার জন্য এক অবিস্মরণীয় দিন। জাতিসংঘের ২৯তম সাধারণ অধিবেশনে জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান বাংলাদেশের রাষ্ট্রপ্রধান হিসেবে প্রথম ভাষণ দেন। তার মাত্র ৮ দিন আগে ১৯৭৪ সালের ১৭ সেপ্টেম্বর সাধারণ অধিবেশনে সর্বসম্মতিক্রমে বাংলাদেশ জাতিসংঘের ১৩৬তম দেশ হিসেবে অন্তর্ভুক্ত হয়। বঙ্গবন্ধুই প্রথম রাষ্ট্রনায়ক যিনি জাতিসংঘে মাতৃভাষা বাংলায় বক্তৃতা করে বাংলা ভাষাকে বিশ্ব সভায় মর্যাদার আসনে অধিষ্ঠিত করেন। সেদিন সাধারণ অধিবেশনের সভাপতি বঙ্গবন্ধুকে অনুরোধ করেন ইংরেজিতে বক্তৃতা করার জন্য। বঙ্গবন্ধু বিনয়ের সাথে বলেছিলেন, ‘মাননীয় সভাপতি আমি আমার মাতৃভাষা বাংলায় বক্তৃতা করতে চাই’। জাতিসংঘের দাফতরিক ভাষা ছয়টি, তার মধ্যে বাংলা ভাষা নেই। বঙ্গবন্ধুর অনুরোধে অধিবেশনের সভাপতি তাকে বাংলায় বক্তব্য দেয়ার অনুমতি দেন। আজ সেই ঐতিহাসিক ২৫ সেপ্টেম্বর। বাঙালি জাঁতি ও বাংলা ভাষার ইতিহাসের গৌরবোজ্জ্বল একটি দিন। স্মারক ডাকটিকিট ও উদ্বোধনী খাম পরবর্তীতে ঢাকা জিপিওর ফিলাটেলিক ব্যুরো ও অন্যান্য জিপিও ও প্রধান ডাকঘরসহ দেশের সকল ডাকঘর থেকে বিক্রি করা হবে। উদ্বোধনী খামে ব্যবহারের জন্য চারটি জিপিওতে বিশেষ সিলমোহরের ব্যবস্থা রাখা হয়েছে।

করোনায় আরও ২১ জনের মৃত্যু, নতুন আক্রান্ত ১৩৮৩

ঢাকা অফিস ॥ রাজধানীসহ সারাদেশে গত ২৪ ঘণ্টায় করোনাভাইরাসে (কোভিড-১৯) আক্রান্ত হয়ে আরও ২১ জন মারা গেছেন। এর মধ্যে পুরুষ ১৪ জন ও নারী ৭ জন। তাদের সকলেই হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মারা যান। এ নিয়ে ভাইরাসটিতে মৃতের সংখ্যা বেড়ে দাঁড়াল পাঁচ হাজার ৯৩ জনে। করোনাভাইরাস শনাক্তে গত ২৪ ঘণ্টায় ১০৩টি পরীক্ষাগারে ১২ হাজার ৫৯৩টি নমুনা সংগ্রহ ও ১২ হাজার ৪৭৩টি নমুনা পরীক্ষা করা হয়। একই সময়ে করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হিসেবে নতুন রোগী শনাক্ত হয়েছেন আরও এক হাজার ৩৮৩ জন। ফলে দেশে মোট শনাক্ত রোগীর সংখ্যা দাঁড়াল তিন লাখ ৫৬ হাজার ৭৬৭ জনে। এ পর্যন্ত মোট নমুনা পরীক্ষার সংখ্যা দাঁড়িয়েছে ১৮ লাখ ৮৮ হাজার ১০টি। গতকাল শুক্রবার বিকেলে স্বাস্থ্য অধিদফতরের অতিরিক্ত মহাপরিচালক (প্রশাসন) অধ্যাপক ডা. নাসিমা সুলতানা স্বাক্ষরিত করোনাবিষয়ক এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে এসব তথ্য জানানো হয়। বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, গত ২৪ ঘণ্টায় সুস্থ হয়েছেন এক হাজার ৯৩২ জন। এ নিয়ে মোট সুস্থের সংখ্যা দাঁড়াল দুই লাখ ৬৭ হাজার ২৪ জনে। ২৪ ঘণ্টায় নমুনা পরীক্ষার তুলনায় রোগী শনাক্তের হার ১১ দশমিক ০৯ শতাংশ এবং এ পর্যন্ত নমুনা পরীক্ষার তুলনায় রোগী শনাক্তের হার ১৮ দশমিক ৯০ শতাংশ। রোগী শনাক্তের তুলনায় সুস্থতার হার ৭৪ দশমিক ৮৫ এবং মৃত্যুর হার এক দশমিক ৪৩ শতাংশ। এ পর্যন্ত করোনায় মোট মৃতের মধ্যে পুরুষ তিন হাজার ৯৪৯ জন (৭৭ দশমিক ৫৪ শতাংশ) ও নারী এক হাজার ১৪৪ জন (২২ দশমিক ৪৬ শতাংশ)। বয়সভিত্তিক বিশ্লেষণে দেখা গেছে, গত ২৪ ঘণ্টায় করোনায় মৃত ২১ জনের মধ্যে চল্লিশোর্ধ্ব ৭ জন, পঞ্চাশোর্ধ্ব ৪ এবং ষাটোর্ধ্ব ১০ জন। বিভাগ অনুযায়ী, গত ২৪ ঘণ্টায় করোনায় মৃত ২১ জনের মধ্যে ঢাকা বিভাগে ১৬ জন, চট্টগ্রামে ২, রাজশাহীতে একজন, খুলনায় একজন ও রংপুরে একজন রয়েছেন।

বিএনপি নেতাদের চোখের চিকিতসা করানোর পরামর্শ হানিফের

ঢাকা অফিস ॥ এনপি নেতাদের দ্রুত চোখের চিকিৎসা করানোর পরামর্শ দিয়েছেন আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মাহবুব-উল-আলম হানিফ। তিনি বলেছেন, বিএনপি নেতারা চোখে উন্নয়ন দেখেন না। এই সরকারের উন্নয়ন যারা দেখে না, তারা আসলে চোখ থাকতে অন্ধ। তাদের চোখে ছানি পড়েছে। এদের দ্রুত চোখের চিকিৎসা করা দরকার। গতকাল শুক্রবার জাতীয় প্রেসক্লাবের জহুর হোসেন চৌধুরী মিলনায়তনে শেখ হাসিনার জন্মদিন উপলক্ষে বাংলাদেশ মুক্তিযোদ্ধা সন্তান প্রজন্ম ঐক্য জোট আয়োজিত ‘উন্নয়ন ও অগ্রগতির বাংলাদেশ’ শীর্ষক আলোচনা সভায় এসব কথা বলেন হানিফ। তিনি বলেন, শেখ হাসিনা নিজের মেধা, যোগ্যতা ও দক্ষতা দিয়ে বাংলাদেশকে আরো এগিয়ে নিয়ে যেতে পারতেন, যদি দেশের মধ্যে বিভেদ না থাকতো। যদি না উন্নয়নমূলক কর্মকান্ডে বাধা আসতো। তাহলে আমরা আরো অনেক দূর এগিয়ে যেতে পারতাম। আমাদের কিছুকিছু মন্ত্রণালয়ে দুর্বলতা থাকলেও আমরা বাংলাদেশকে সব ক্ষেত্রে উন্নয়নের দিকে নিয়ে গেছি। হানিফ আরো বলেন, পত্রিকায় দেখলাম বিএনপির উচ্চপদস্থ কয়েকজন নেতা লন্ডনে বসে বিভিন্ন দেশের গোয়েন্দা সংস্থার দ্বারস্থ হচ্ছেন। বিএনপির নিজের বলতে কিছু নেই। কারণ, তারা জানে তাদের প্রতি জনগণের কোন সমর্থন নেই। এজন্যই ক্ষমতায় আসতে সবসময় ষড়যন্ত্রের পথ খোঁজে। তিনি বলেন, ষড়যন্ত্র করে শেখ হাসিনার সরকারকে ক্ষমতা থেকে নামানো যাবে না। অন্য দেশের গোয়েন্দাদের হাত-পা ধরে বাংলাদেশের ক্ষমতায় আসা যাবে না। এ দেশে ক্ষমতায় আসতে হলে জনগণের ম্যান্ডেট নিয়ে আসতে হবে। আলোচনা সভায় আরো উপস্থিত ছিলেন বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ের সাবেক উপাচার্য অধ্যাপক ডা. কামরুল হাসান খান, আয়োজক সংগঠনের সভাপতি ব্যারিস্টার জাকির আহাম্মদ প্রমুখ।

প্রধানমন্ত্রী জাতিসংঘে ভাষণ দেবেন আজ

ঢাকা অফিস ॥ প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা নিউইয়র্কে জাতিসংঘ সাধারণ পরিষদের (ইউএনজিএ) ৭৫ তম অধিবেশনে ভার্চুয়াল ভাষণ দেবেন। প্রধানমন্ত্রীর প্রেস সচিব ইহসানুল করিম গতকাল শুক্রবার জানান, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা আজ শনিবার বাংলাদেশ সময় রাত ৮টায় এবং স্থানীয় সময় সকাল ১০টায় (নিউইয়র্ক সময়) জাতিসংঘ সদর দপ্তরে সাধারণ পরিষদে তার পূর্ব নির্ধারিত রেকর্ডকৃত ভাষণ দেবেন। প্রধানমন্ত্রী জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের পদাঙ্ক অনুসরণ করে প্রতি বছরের মত এ বছরও বাংলায় এই ভাষণ দেবেন। বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান ১৯৭৪ সালের ২৫ সেপ্টেম্বর জাতিসংঘ সাধারণ পরিষদের ২৯ তম অধিবেশনে প্রথম বাংলায় ভাষণ দিয়ে ইতিহাস সৃষ্টি করেছিলেন। পররাষ্ট্রমন্ত্রী ড. এ কে আবদুল মোমেন ২১ সেপ্টেম্বর এক ভার্চুয়াল প্রেস ব্রিফিংয়ে জানান, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা তাঁর ভাষণে কোভিড ১৯ সংক্রমণ, রোহিঙ্গা সংকট এবং জলবায়ুসহ একাধিক গুরুত্বপূর্ণ বিষয় তুলে ধরবেন। তিনি বলেন, প্রধানমন্ত্রী তাঁর ভাষণে কোভিড ১৯ সংক্রমণ পরিস্থিতি, ভ্যাকসিনের সমবন্টন এবং প্রবাসী শ্রমিক ও রেমিটেন্সের ওপর এর প্রভাব তুলে ধরবেন। এছাড়া, তিনি জলবায়ু ভালনারেবল ফোরামের সভাপতি হিসাবে জলবায়ু ইস্যুটিও তুলে ধরবেন। পররাষ্ট্রমন্ত্রী আরো বলেন, প্রধানমন্ত্রী ভাষণে রোহিঙ্গা সমস্যার সমাধানে পাশে থাকতে এবং এই সমস্যা সমাধানে তাঁর দেয়া চার দফা প্রস্তাবের ভিত্তিতে সংকট নিরসনে সকলের প্রচেষ্টা অব্যাহত রাখতে আন্তর্জাতিক সম্প্রদায়ের প্রতি তিনি আহ্বান জানাবেন। প্রধানমন্ত্রী এর আগে জাতিসংঘ সাধারণ পরিষদের ৭৪তম অধিবেশনে এই চার দফা প্রস্তাব পেশ করেন। পররাষ্ট্রমন্ত্রী আরো জানান, পাশাপাশি প্রধানমন্ত্রী কোভিড-১৯ পরিস্থিতি মোকাবেলায় বাংলাদেশের সফলতা, এসডিজি বাস্তবায়ন, নারীর ক্ষমতায়ন ও অধিকার প্রতিষ্ঠা, দারিদ্র্য বিমোচন, সন্ত্রাস দমন, মাদক চোরাচালান বন্ধ, অর্থনৈতিক অগ্রগতি, টেকসই গণতন্ত্র, সুশাসন এবং বিশ্ব শান্তি প্রতিষ্ঠায় বাংলাদেশের ভূমিকা তাঁর ভাষণে তুলে ধরবেন। গত ২১ সেপ্টেম্বর জাতিসংঘ সাধারণ পরিষদের ৭৫তম অধিবেশন ভার্চুয়াল পদ্ধতিতে শুরু হয়েছে। এ বছরের প্রতিপাদ্য বিষয় হচ্ছে, ‘আমরা ভবিষ্যৎ চাই, জাতিসংঘ আমাদের প্রয়োজন : বহুমুখীতার প্রতি আমাদের প্রতিশ্র“তি পুনর্নিশ্চিতের মাধ্যমে।’ বিশ্বব্যাপী কোভিড-১৯ এর কারণে জাতিসংঘের ৭৫ বছরের ইতিহাসে এই প্রথম বিশ্ব নেতৃবৃন্দ বিশ্বের সর্বোচ্চ ফোরাম জাতিসংঘ সাধারণ পরিষদের ভার্চুয়াল অধিবেশনে অংশ নিচ্ছেন।

গণভবন থেকে ভিডিও কনফারেন্সে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা

করোনায় যেন দুর্ভিক্ষের প্রভাব না পড়ে সে প্রস্তুতি নেওয়া হয়েছিল

ঢাকা অফিস ॥ করোনা ভাইরাস মহামারির কারণে দেশে যেন দুর্ভিক্ষের প্রভাব না পড়ে, সে জন্য আগে থেকেই প্রস্তুতি নেওয়া হয়েছিল বলে জানিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। জাতিসংঘের সাধারণ পরিষদে বঙ্গবন্ধুর বাংলা ভাষণ স্মরণে আয়োজিত আলোচনা এবং ফরেন সার্ভিস একাডেমির নবনির্মিত ভবন উদ্বোধন অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এ কথা জানান। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা তার সরকারি বাসভবন গণভবন থেকে ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে অনুষ্ঠানে যুক্ত হয়েছিলেন। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেন, আমি ভেবেছি, করোনা ভাইরাসের কারণে হয়তো বিশ্বে দুর্ভিক্ষ দেখা দিতে পারে। তাই সতর্ক ছিলাম বাংলাদেশে যেন কোনোভাবেই সেই দুর্ভিক্ষের প্রভাব না পড়ে। যতটুকু পারি খাদ্য উৎপাদন করা, খাদ্য বিতরণ করা, দরিদ্র মানুষকে বিনা পয়সায় খাদ্য দেওয়া এবং খাদ্যের নিশ্চয়তা দেওয়া, সেই প্রচেষ্টা আমরা চালিয়ে যাচ্ছি। প্রধানমন্ত্রী বলেন, আমরা সিদ্ধান্ত নিয়েছি, প্রতিটি মানুষকে, যারা গৃহহীন, তাদের গৃহ নির্মাণ করে দেব। যারা ভূমিহীন, তাদের ভূমির ব্যবস্থা করে দেব। মুজিববর্ষে কেউ গৃহহীন থাকবে না। আমরা খাদ্য নিরাপত্তা নিশ্চিত করতে পেরেছি। পুষ্টির নিশ্চয়তার ওপর গুরুত্ব দিচ্ছি। করোনা ভাইরাস মোকাবিলা করার জন্য আমরা বিভিন্ন কর্মসূচি নিয়েছি। পাশাপাশি বিশেষ প্রণোদনা দিয়েছি। সব মানুষ যাতে এই প্রণোদনার সহযোগিতাটা পায়, সে ব্যবস্থাও আমরা করে দিয়েছি। আমরা সবচেয়ে বেশি গুরুত্ব দিচ্ছি খাদ্যের ওপর। মুজিববর্ষে জাতির পিতা বঙ্গবন্ধুর স্বপ্ন ক্ষুধামুক্ত, দারিদ্র্যমুক্ত বাংলাদেশ আমরা গড়তে চাই। ৪০ শতাংশ দারিদ্র্য ছিল। সেই হার আমরা ২০ শতাংশে এনেছি। আমরা আরও কমাতে চাই। তিনি বলেন, বিশ্বে করোনা ভাইরাস নামে এখন যে মহাদুর্যোগ চলছে, তা থেকে বিশ্ববাসী শিগগিরই মুক্তি পাক এটাই আমাদের আকাক্সক্ষা। মানুষ আবার সম্পূর্ণভাবে স্বাভাবিক জীবনযাপন করতে পারুক এটাই আমরা চাই। এই সময় আমাদের সাধারণত জাতিসংঘে থাকার কথা। কিন্তু যেতে পারিনি করোনা ভাইরাসের কারণে। প্রতিবার আমি জাতিসংঘে ভাষণ দিয়েছি। এবার আমার ১৭তম ভাষণ আমি দিতে পারছি না, এটা দুঃখজনক। আসলে জাতিসংঘে সব দেশের নেতাদের সঙ্গে দেখা হওয়ার একটা সুযোগ তৈরি হয়। পরস্পরের সঙ্গে অভিজ্ঞতা বিনিময় হয়। একে অপরকে কীভাবে সহযোগিতা করা যায়, কীভাবে এগিয়ে নেওয়া যায়, একে অপরকে জানতে পারি। এখন বিশ্বে কূটনীতি পরিবর্তন হয়েছে। আগে ছিল রাজনৈতিক কূটনীতি। এখন হয়েছে অর্থনৈতিক কূটনীতি। ব্যবসা-বাণিজ্য করে, সবার সঙ্গে মিলে কীভাবে অর্থনৈতিক সমৃদ্ধি অর্জন করা যায়, একে অপরকে কীভাবে সহযোগিতা করা যায়, একে অপরের সহযোগিতার মাধ্যমে শান্তি কীভাবে আনা যায়, সেভাবে এখন আমাদের কূটনীতি চালাতে হবে। আর এই দায়িত্ব পালনের জন্য দরকার সঠিক প্রশিক্ষণ। বাংলাদেশ শান্তি প্রতিষ্ঠার জন্য তৈরি জানিয়ে শেখ হাসিনা বলেন, করোনাভাইরাসের হাত থেকে সবাই মুক্তি পাক এবং সবাই আগের মতো কাজ করুক এটা আমরা চাই। তিনি জানান, ১৯৯৬ সালে তিনি ক্ষমতায় এসে কূটনীতিকদের প্রশিক্ষণের বিষয়টি উপলব্ধি করে ফরেন সার্ভিস অ্যাকাডেমি গড়ার জন্য তৎকালীন পররাষ্ট্রমন্ত্রী আবদুস সামাদ আজাদকে নির্দেশ দেওয়ার পরে সুগন্ধায় সেটি প্রতিষ্ঠিত হয়। গোটা বিশ্ব এখন গ্লোবাল ভিলেজ উল্লেখ করে এর উন্নতির জন্য সবার সহযোগিতার ওপর জোর দেন প্রধানমন্ত্রী। ১৯৭৪ সালে জাতিসংঘে বঙ্গবন্ধুর ভাষণের বিষয়ে তিনি বলেন, ৪৬ বছর আগে জাতির পিতা যা বলে গিয়েছিলেন এখনও সেগুলো বিশ্বের জন্য প্রযোজ্য এবং সেগুলো নিয়ে আমরা কাজ করছি। ন্যায়বিচার, দরিদ্রতা থেকে মুক্তিসহ বিভিন্ন বিষয় তিনি উল্লেখ করেছেন। আমরা তাঁর দেখানো পররাষ্ট্রনীতিÑসবার সঙ্গে বন্ধুত্ব, কারও সঙ্গে বৈরিতা নয় এটা অনুসরণ করে চলেছি। বঙ্গবন্ধুর কূটনীতির সাফল্য নিয়ে তিনি বলেন, বাংলাদেশ ওই সময় জাতিসংঘ, কমনওয়েলথ, ওআইসিসহ অনেক বহুপক্ষীয় সংস্থার সদস্য হয়েছে। অনুষ্ঠানে পররাষ্ট্রমন্ত্রী একে আবদুল মোমেন বলেন, বঙ্গবন্ধু জাতিসংঘে তাঁর ভাষণে ২৭টি বিষয়ের ওপরে কথা বলেছেন, যা এখনও প্রযোজ্য। জাতিসংঘে সদস্যপদ পাওয়া সহজ ছিল না জানিয়ে তিনি বলেন, এজন্য আমাদের দুই বছর কষ্ট করতে হয়েছে। জলবায়ুর পরিবর্তন থেকে পৃথিবী রক্ষায় পাঁচ প্রস্তাব: পৃথিবীকে জলবায়ু পরিবর্তনের বিরূপ প্রভাব থেকে রক্ষা করার জন্য পাঁচ-দফা প্রস্তাব উপস্থাপন করে জোরাল আন্তর্জাতিক সহযোগিতা কামনা করেছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। তিনি তার প্রথম প্রস্তাবে বলেন, জলবায়ু পরিবর্তনের বিরূপ প্রভাব থেকে পৃথিবী এবং নিজেদের রক্ষা করার জন্য আমি রাজনৈতিক নেতৃত্বকে অবশ্যই জোরাল আন্তর্জাতিক সহযোগিতা উৎসাহিত করার পরামর্শ দেব। গত বৃহস্পতিবার প্রধানমন্ত্রী নিউইয়র্কে জাতিসংঘের ৭৫তম সাধারণ অধিবেশনের (ইউএনজিএ) সাইডলাইনে জলবায়ুু সংক্রাস্ত উচ্চপর্যায়ের একটি ভার্চুয়াল গোলটেবিল আলোচনায় এক ভিডিও বার্তার মাধ্যমে এ প্রস্তাব দেন। প্রধানমন্ত্রী তার দ্বিতীয় প্রস্তাবনায় বলেন, বৈশ্বিক তাপমাত্রা বৃদ্ধি ১.৫ ডিগ্রি সেলসিয়াস পর্যন্ত সীমাবদ্ধ রাখতে হবে এবং সমস্ত প্যারিস প্রবিধান বাস্তবায়ন করতে হবে। তৃতীয়ত, তিনি বলেন, দুর্বল দেশগুলোকে প্রতিশ্রুত তহবিল সরবরাহ করতে হবে। চতুর্থ প্রস্তাবে শেখ হাসিনা বলেন, দূষণকারী দেশগুলোকে প্রয়োজনীয় প্রশমন ব্যবস্থার মাধ্যমে তাদের এনডিসি (জাতীয় নির্ধারিত অবদান) বাড়াতে হবে। পঞ্চম প্রস্তাবনায় তিনি বলেন, জলবায়ু শরণার্থীদের পুনর্বাসন একটি বৈশ্বিক দায়িত্ব হিসেবে স্বীকৃতি দিতে হবে।

পাপিয়া দম্পতির যাবজ্জীবন কারাদন্ড চায় রাষ্ট্রপক্ষ

ঢাকা অফিস ॥ নরসিংদী জেলা যুব মহিলা লীগের বহিষ্কৃত সাধারণ সম্পাদক শামীমা নূর পাপিয়া ও তার স্বামী মফিজুর রহমানের বিরুদ্ধে অস্ত্র আইনে করা মামলায় তাদের যাবজ্জীবন কারাদন্ড প্রত্যাশা করছেন রাষ্ট্রপক্ষ। গতকাল বৃহস্পতিবার ঢাকা মহানগর দায়রা জজ কে এম ইমরুল কায়েশের আদালতে রাষ্ট্রপক্ষ মামলার যুক্তি উপস্থাপন শেষ করেন। এ সময় ঢাকা মহানগর পাবলিক প্রসিকিউটর (পিপি) আব্দুল্লাহ আবু বলেন, মামলার সাক্ষ্য-প্রমাণে আসামিদের বিরুদ্ধে আমরা অভিযোগ প্রমাণ করতে সক্ষম হয়েছি। আশা করছি, রায়ে আসামিদের সর্বোচ্চ শাস্তি যাবজ্জীবন কারাদন্ড হবে। রাষ্ট্রপক্ষের যুক্তি উপস্থাপন শেষে পাপিয়ার স্বামী মফিজুরের পক্ষে যুক্তি উপস্থাপন করেন তার আইনজীবী। তিনি তার খালাস প্রত্যাশা করেন। এরপর পাপিয়ার পক্ষে যুক্তি উপস্থাপন শুরু করেন তার আইনজীবী। তবে তার পক্ষে যুক্তি উপস্থাপন শেষ না হওয়ায় রোববার পরবর্তী দিন ধার্য করেন আদালত। এ মামলায় ১২ সাক্ষীর মধ্যে ১২ জনই আদালতে সাক্ষ্য দিয়েছেন। গত ২৯ জুন ঢাকা মহানগর হাকিম আদালতে মামলার তদন্ত কর্মকর্তা র‌্যাবের উপপরিদর্শক আরিফুজ্জামান আদালতে তাদের বিরুদ্ধে এ চার্জশিট দাখিল করেন। চার্জশিটে সাক্ষী করা হয়েছে ১২ জনকে। গত ২২ ফেব্রুয়ারি হযরত শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দর থেকে দেশত্যাগের সময় পাপিয়াসহ চারজনকে গ্রেফতার করে র‌্যাব। গ্রেফতার অন্যরা হলেন-পাপিয়ার স্বামী মফিজুর রহমান ওরফে সুমন চৌধুরী ওরফে মতি সুমন (৩৮), সাব্বির খন্দকার (২৯) ও শেখ তায়্যিবা (২২)। তাদের কাছ থেকে সাতটি পাসপোর্ট, নগদ দুই লাখ ১২ হাজার ২৭০ টাকা, ২৫ হাজার ৬০০ টাকার জাল মুদ্রা, ১১ হাজার ৯১ ইউএস ডলারসহ বিভিন্ন দেশের মুদ্রা জব্দ করা হয়। গ্রেফতারের পর ওইদিন রাতেই নরসিংদীর বাসায় এবং ২৩ ফেব্র“য়ারি ভোরে হোটেল ওয়েস্টিনে তাদের নামে বুকিং করা বিলাসবহুল প্রেসিডেন্সিয়াল স্যুটে অভিযান চালানো হয়। এ ছাড়া ফার্মগেট এলাকার ২৮ নম্বর ইন্দিরা রোডে অবস্থিত রওশন’স ডমিনো রিলিভো নামক বিলাসবহুল ভবনে তাদের দুটি ফ্ল্যাটে অভিযান চালিয়ে একটি বিদেশি পিস্তল, দুটি পিস্তলের ম্যাগজিন, ২০ রাউন্ড পিস্তলের গুলি, পাঁচ বোতল বিদেশি মদ ও নগদ ৫৮ লাখ ৪১ হাজার টাকা, পাঁচটি পাসপোর্ট, তিনটি চেক, বিদেশি মুদ্রা, বিভিন্ন ব্যাংকের ১০টি ভিসা ও এটিএম কার্ড জব্দ করে র‌্যাব। ওই ঘটনায় শেরেবাংলা নগর থানায় অস্ত্র আইনে একটি, বিশেষ ক্ষমতা আইনে একটি এবং বিমানবন্দর থানায় বিশেষ ক্ষমতা আইনে আরেকটি মামলা করা হয়।

আহ্বান করা হয়নি দরপত্র

কুমারখালী পৌরসভার পাঁচটি উন্নয়ন কাজে অনিয়মের অভিযোগ

বিশেষ প্রতিনিধি ॥ কুষ্টিয়ার কুমারখালী পৌরসভার পাঁচটি উন্নয়ন কাজে অনিয়মের অভিযোগ উঠেছে। এসব কাজ বাস্তবায়নে কত টাকা খরচ হয়েছে, তা কেউ জানেন না। পৌরসভার মেয়র শামসুজ্জামান অরুণের তত্ত্বাবধানে কাজগুলো করা হয়েছে। কিন্তু এসব কাজের জন্য ছিল না কোনো প্রকল্প, আহ্বান করা হয়নি দরপত্রও। কোন খাত থেকে অর্থ ব্যয় করা হয়েছে, সে বিষয়েও জানেন না পৌরসভার কাউন্সিলররা।

কাউন্সিলরদের অভিযোগ, মেয়র একা তদারকি করে এসব কাজ করেছেন। সাধারণত সরকারি উন্নয়ন কাজের ক্ষেত্রে সভা করে রেজ্যুলেশন, দরপত্র আহ্বান ও ঠিকাদার নিয়োগ করার বিধান থাকলেও ওই পাঁচ কাজের ক্ষেত্রে এসব কিছুই মানা হয়নি।

কয়েকজন কাউন্সিলর ও প্রকৌশলীর কার্যালয় সূত্রে জানা গেছে, পাঁচটি কাজের মধ্যে আছে কুমারখালী থানার সৌন্দর্যবর্ধন, পৌর বাস টার্মিনালের সংস্কার,  সেরকান্দি এলাকায় ১০০ মিটার সিসি সড়ক নির্মাণ, কুন্ডুপাড়ায় ফরিদ আহমেদ কমিশনারের বাড়ির সামনে সিসি সড়ক নির্মাণ এবং এলঙ্গী এলাকায় মাথাভাঙা মন্দিরের ছাদ নির্মাণ ও সংস্কার।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক একজন কাউন্সিলর অভিযোগ করেন, মেয়র শামসুজ্জামান অরুণ ও সার্ভেয়ার ফিরোজুল ইসলাম মিলে সব কটি কাজ শেষ করেছেন।  কোনো কাউন্সিলর কিছু বলার সাহস পাননি। মেয়র শামসুজ্জামান অরুণ কুমারখালী উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক।

কুমারখালী থানার ফটকের পাশে ফোয়ারা, স্যালুট ডায়াস ও পার্ক নির্মাণ করে  সৌন্দর্যবর্ধন করা হয়েছে। এসব কাজের বিষয়ে ১০ সেপ্টেম্বর ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মজিবুর রহমান জানান, গত এপ্রিল-মে মাসে এই কাজ করা হয়। ফোয়ারার পাশে একটি দৃষ্টিনন্দন ফটকও করা হবে। মেয়র নিজে কাজগুলো করে দিয়েছেন। কাজের কোনো কাগজপত্রের অনুলিপি থানায় আছে কি না, জানতে চাইলে ওসি বলেন, কোনো ঠিকাদার ছিলেন না। মেয়র সব জানেন। পুলিশের অর্থায়নেও কোনো কাজ করা হয়নি বা হচ্ছে না।

কুমারখালী বাস টার্মিনালে গিয়ে দেখা যায়, টার্মিনালের ঠিক পেছনে গাড়ির র‌্যাম্প তৈরি করা হয়েছে। কয়েকটি দোকানও সংস্কার করা হয়। র‌্যাম্পের ওপর দুটি মাইক্রোবাস দাঁড় করানো। চালকেরা জানান, কয়েক মাস আগে পৌরসভা  থেকে এসব কাজ করে দেওয়া হয়েছে।

কুন্ডুপাড়া এলাকায় ফরিদ আহমেদের বাড়ির সামনে সিসি সড়কের পাশে বসার জন্য টাইলস লাগানো আসনও তৈরি করা হয়েছে। সড়কটি অন্তত ১০০ মিটার দীর্ঘ। স্থানীয় বাসিন্দা বদরুল বলেন, আগস্টে এ সড়ক পৌরসভা নির্মাণ করে দিয়েছে। পৌরসভার পাশে সেরকান্দি এলাকায় একইভাবে একই সময়ে সিসি সড়ক নির্মাণ করা হয়েছে।

পাঁচটি কাজ নিয়ে ওঠা অভিযোগের বিষয়ে জানতে ১০ সেপ্টেম্বর দুপুরে  পৌরসভায় গিয়ে মেয়র শামসুজ্জামান অরুণকে পাওয়া যায়নি। প্রকৌশলীর দপ্তরের সার্ভেয়ার ফিরোজুল ইসলাম বলেন, ‘কোনো কাজেরই এখনো দরপত্র হয়নি। অচিরেই দরপত্র আহ্বান করা হবে। এর বেশি কিছু জানতে চাইলে  মেয়র মহোদয়ের সঙ্গে কথা বলতে হবে। তিনিই সব জানেন।’

পরে মোবাইলফোনে মেয়র শামসুজ্জামান অরুণ বলেন, থানার কাজের দরপত্রের জন্য পত্রিকায় বিজ্ঞাপন পাঠানো হয়েছে। কত টাকার কাজ, সেটা জানা  নেই। বাকি চারটি কাজের দরপত্র আগেই করা হয়েছে। ঠিকাদার কারা ছিলেন, সেটা প্রকৌশলীর কার্যালয় বলতে পারবে। সার্ভেয়ার ফিরোজুল ইসলামের দেওয়া বক্তব্যের ব্যাপারে মেয়র বলেন, ‘ও কিছু জানে না।’

পৌরসভার নির্বাহী প্রকৌশলীর পদ শূন্য। সহকারী প্রকৌশলীর পদে অতিরিক্ত দায়িত্ব পালন করছেন খোকসা পৌরসভার সহকারী প্রকৌশলী আকরামুজ্জামান। পাঁচটি উন্নয়ন কাজের বিষয়ে তিনি বলেন, থানার ভেতর ও বাসস্ট্যান্ডের কাজের কোনো টেন্ডার হয়নি। বাকি তিনটি কাজ তাঁর অজানা।

প্রকল্প প্রস্তাবনা ও দরপত্রের আগেই কাজ শেষ হতে পারে কি না, জানতে চাইলে স্থানীয় সরকারের উপ-পরিচালক মৃণাল কান্তি দে বলেন, প্রতিটি কাজের জন্য সভা করে রেজ্যুলেশন, দরপত্র আহ্বান ও ঠিকাদার নিয়োগ করার বিধান রয়েছে। দরপত্র ও ঠিকাদার ছাড়া কোনো কাজ হতেই পারে না। এটা অসম্ভব। যদি না করা হয়ে থাকে, সেটা বিধি অনুযায়ী কাজ হতে পারে না।

ষড়যন্ত্র বিএনপির রাজনৈতিক দর্শন – ওবায়দুল কাদের

ঢাকা অফিস ॥ আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক, সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের বিএনপির সমালোচনা করে বলেছেন, বিএনপি নেতারা বিদেশে বসে সরকার পতনের জন্য ষড়যন্ত্র করে, আবার দেশে নির্বাচনে অংশগ্রহণের কথা বলে। এতে তাদের দ্বিচারিতা এবং ষড়যন্ত্রের রাজনীতি স্পষ্ট হয়ে ওঠে। তিনি বলেন, ষড়যন্ত্র বিএনপির রাজনৈতিক দর্শন। গতকাল বৃহস্পতিবার সকালে ক্রসবর্ডার রোড নেটওয়ার্ক উন্নয়ন প্রকল্পের অগ্রগতি পর্যালোচনা সভায় এসব কথা বলেন তিনি। ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে এ সভায় যুক্ত হন কাদের। ওবায়দুল কাদের বলেন, বিএনপি নেতারা কখনো জেদ্দা, কখনও আবুধাবি আবার কখনও লন্ডনে বসে গোপন বৈঠক করুক না কেন, সব খবরই সরকারের কাছে আছে। গোপন বৈঠক আর ষড়যন্ত্র করে লাভ নেই, রাজনীতি করতে হবে জনগণের জন্য। বিএনপি নেতাদের উদ্দেশে তিনি বলেন, সরকার পরিবর্তন করতে চাইলে জনমানুষের কাছে আসুন, বিদেশি শক্তি বা কোনো সংস্থার কাছে নয়। করোনা ভাইরাস প্রসঙ্গে কথা বলতে গিয়ে মন্ত্রী বলেন, করোনার ভ্যাকসিন আসছে ভেবে স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলার ক্ষেত্রে অনেকেরই গা-ছাড়া ভাব দেখা দিয়েছে, অবহেলা করছেন এবং মাস্ক পরিধান করছে না। সবাইকে সতর্ক করে দিয়ে তিনি বলেন, করোনার কার্যকর ভ্যাকসিন কবে আসবে তা এখনও সুনিশ্চিত নয়। স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলা এবং মাস্ক পরাই সবচেয়ে বড় প্রতিষেধক। করোনার সংক্রমণ রোধে সচেতনাই হচ্ছে উত্তম ভ্যাকসিন। সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের বলেন, প্রায় ৭শ মিটার দীর্ঘ কালনা সেতুটি অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ সেতু। মধুমতি নদীর দুপাড়ের মাঝে সেতুবন্ধ তৈরি ছাড়াও কালনা সেতুটি পদ্মা সেতুর সাথে সংযুক্ত। বিধায় পদ্মা সেতুর সুবিধা পেতে হলে কালনা সেতুর নির্মাণ কাজ শেষ করা জরুরি। ইতোমধ্যেই কালনা সেতুর শতকরা ৩৫ ভাগ কাজ শেষ হয়েছে। পদ্মা সেতুর কাজের সাথে সমন্বয় রেখে কালনা সেতুর নির্মাণ কাজ আরো দ্রুত এগিয়ে নিতে সংশ্লিষ্টদের নির্দেশ দেন মন্ত্রী। ভিডিও কনফারেন্সে আরও যুক্ত ছিলেন- সড়ক পরিবহন ও মহাসড়ক বিভাগের অতিরিক্ত সচিব, সড়ক ও জনপথ অধিদফতরের প্রধান প্রকৌশলী, প্রকল্প পরিচালকসহ মন্ত্রণালয়ের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা।

আওয়ামী লীগ দেশ পরিচালনায় ব্যর্থ হয়েছে – ফখরুল

ঢাকা অফিস ॥ ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগ দেশ পরিচালনায় সবক্ষেত্রে ব্যর্থ হয়েছে বলে দাবি করেছেন বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর। গতকাল বৃহস্পতিবার গণমাধ্যমে পাঠানো এক বিবৃতিতে তিনি এসব বলেন। তিনি বলেন, আওয়ামী সরকার মানুষের ভোটের এবং গণতান্ত্রিক অধিকারকে ধ্বংসের মাধ্যমে দেশটাকে কারাগারে পরিণত করেছে। বিরামহীনভাবে বিএনপিসহ বিরোধী নেতা-কর্মীদেরকে গ্রেফতার করছে। কাল্পনিক কাহিনি বানিয়ে মামলা দায়ের করা হচ্ছে, কারান্তরীণ করা হচ্ছে। ভুয়া, বানোয়াট ও সাজানো মামলায় জাতীয়তাবাদী ছাত্রদল-সোনাগাজী উপজেলা শাখার যুগ্ম আহ্বায়ক জসিম উদ্দিনকে অসত্য মামলায় গ্রেফতার করে কারাগারে পাঠিয়েছে সরকার। সরকারের সকল অপকর্ম ও দু:শাসন রুখে দিতে জনগণ এখন আরও বেশি ঐক্যবদ্ধ। বিএনপি মহাসচিব অবিলম্বে জসিম উদ্দিনের বিরুদ্ধে রাজনৈতিক উদ্দেশ্যপ্রণোদিত মামলা প্রত্যাহার এবং নি:শর্ত মুক্তির জোর দাবি জানান।

এইচএসসি পরীক্ষা শুরুর প্রস্তুতি নেবে শিক্ষা বোর্ড

ঢাকা অফিস ॥ স্বাস্থ্যবিধি মেনে এইচএসসি ও সমমান পরীক্ষা আয়োজনের সব প্রস্তুতি চূড়ান্ত করবে শিক্ষা বোর্ডগুলো। মন্ত্রণালয় থেকে পরীক্ষা শুরুর সিদ্ধান্ত হলে পরবর্তী ১৫ দিনের মধ্যে প্রস্তুতি শুরু করতে চান শিক্ষা বোর্ডের চেয়ারম্যানরা। গতকাল বৃহস্পতিবার আন্তঃশিক্ষা সমন্বয়ক বোর্ডের সভায় উপস্থিত হয়ে বোর্ড চেয়ারম্যানরা এমন সিদ্ধান্ত নেন। সভা শেষে যশোর শিক্ষা বোর্ডের চেয়ারম্যান অধাপক মো. আবদুল আলীম বলেন, স্বাস্থ্যবিধি মেনে কী কী পদ্ধতিতে এইচএসসি ও সমমান পরীক্ষা নেয়া যেতে পারে সেসব বিষয়ে আলোচনা হয়েছে। পরীক্ষা নেয়ার জন্য প্রশ্ন ও উত্তরপত্র প্রস্তুত রয়েছে। কবে পরীক্ষা নেয়া হবে সরকার সিদ্ধান্ত ঘোষণা দিলে আমরা পরবর্তী ১৫ দিনের মধ্যে সব প্রস্তুতি শেষ করতে পারবো। তিনি আরও বলেন, এখন পাবলিক পরীক্ষা আগের মতো নেয়া সম্ভব নয়। স্বাস্থ্যবিধি মেনে এক বেঞ্চে একজন বা দুজন করে পরীক্ষার্থী বসানো হবে। পরীক্ষা কেন্দ্র স্বাস্থ্যবিধি নিশ্চিত করে এ পরীক্ষা আয়োজন করা হবে। সব শিক্ষা বোর্ডগুলোকে পরীক্ষা সংক্রান্ত প্রস্তুতি নিতে বলা হয়েছে। এদিকে সভা শেষে সাংবাদিকদের বিভিন্ন প্রশ্নের উত্তরে ঢাকা শিক্ষা বোর্ডের চেয়ারম্যান অধ্যাপক মু. জিয়াউক হক বলেন, জেএসসি পরীক্ষা বাতিল করা হলেও পরবর্তী ক্লাসে কীভাবে উত্তীর্ণ করা হবে সে বিষয়ে একটি সিদ্ধান্ত নেয়া হবে। শিক্ষার্থীদের নিজস্ব প্রক্রিয়ায় পরবর্তী ক্লাসে উন্নীত করবে। এটি করতে যাতে কোনো সমস্যা না হয় এজন্য একটি গাইডলাইন তৈরি করা হবে। সেটি অনুসরণ করে পরবর্তী ক্লাসে উন্নীত করা হবে। তিনি বলেন, স্কুলগুলোতে গত মার্চ মাস পর্যন্ত ক্লাস হয়েছে। সংসদ টিভিতে পড়ালেখা করছে, অনলাইন ক্লাস হচ্ছে। তার ওপর ভিত্তি করে মূল্যায়ন করা হবে। নভেম্বরে স্কুল খোলা সম্ভব হলে একভাবে, আর ক্লাস করানো সম্ভব না হলে সেখানে ভিন্নভাবে মূল্যায়ন করা হবে। এজন্য কিছু সময় লাগবে। যতটুকু পড়ানো হবে তার ওপর মূল্যায়ন করা হবে। ঢাকা বোর্ডের চেয়ারম্যান বলেন, যদি নভেম্বরে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান খোলা সম্ভব না হয়, তাহলে অষ্টম শ্রেণির শিক্ষার্থীদের পরবর্তী ক্লাসে তোলা হলেও পরবর্তী ক্লাসের সিলেবাসের সঙ্গে বাদ পড়া অতি প্রয়োজনীয় নবম শ্রেণির জন্য কিছু বিষয় যুক্ত করা হবে। তবে সেটি বাড়তি চাপ তৈরি করা হবে না। মূল্যায়ন কেমন হবে জানতে চাইলে তিনি বলেন, মূল্যায়ন যদি ‘ফেস টু ফেস’ করা সম্ভব হয় তবে সেটা একরকম হবে, তা সম্ভব না হলে যতটুকু ক্লাস করা হয়েছে তার ওপর ভিত্তি করে হবে। এখনো সুনির্দিষ্ট কোনো পদ্ধতি আমরা নিশ্চিত করতে পারছি না, পরিস্থিতি ভিত্তি করে সিদ্ধান্ত নেয়া হবে। অটো প্রমোশন বলে কিছু নেই, সবকিছু হবে মূল্যায়নের ভিত্তিতে। নিম্ন মাধ্যমিক ও মাধ্যমিক পর্যায়ে ৬ষ্ঠ, ৭ম স্তরের শিক্ষার্থীদের পরবর্তী ক্লাসে উন্নীতের জন্য মাধ্যমিক ও উচ্চশিক্ষা অধিদফতর ও জাতীয় পাঠ্যক্রম এবং পাঠ্যপুস্তক বোর্ড থেকে নির্দেশনা দেয়া হবে বলে জানান তিনি।

গৃহহীনদের খুঁজে খুঁজে ঘর করে দেবে সরকার – জনপ্রশাসন প্রতিমন্ত্রী

ঢাকা অফিস ॥ জনপ্রশাসন প্রতিমন্ত্রী ফরহাদ হোসেন বলেছেন, বাংলাদেশের কোনো মানুষ গৃহহীন অবস্থায় থাকবে না। ‘জমি আছে ঘর নেই’ প্রকল্পের আওতায় দেশের সকল নাগরিক ঘর পাবে। এ ব্যাপারে সরকারের ব্যাপক পরিকল্পনা রয়েছে। এ নিয়ে বড় অংকের অর্থ বাজেট করা হচ্ছে। আগামীতে গৃহহীনদের খুঁজে খুঁজে বের করে ঘর করে দেবে সরকার। গতকাল বৃহস্পতিবার দুপুরে মেহেরপুরের মুজিবনগর উপজেলার দারিয়াপুরে দুর্যোগ সহনীয় বাসগৃহপ্রাপ্ত সুবিধাভোগীদের পক্ষ থেকে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে ধন্যবাদ ও কৃতজ্ঞতা জ্ঞাপন অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে প্রতিমন্ত্রী এসব কথা বলেন। তিনি আরও বলেন, বিশ্ব মহামারির সময়েও অর্থনৈতিকভাবে শক্ত অবস্থান ধরে রেখেছে বাংলাদেশ। তাই বাংলাদেশকে বিশ্বের অনেক বড় বড় রাষ্ট্র অনুসরণ করছে। মেহেরপুরের জেলা প্রশাসক ড. মুনসুর আলম খানের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে পুলিশ সুপার এসএম মুরাদ আলী, জেলা আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক ইব্রাহীম শাহিনসহ সরকারি কর্মকর্তা, জনপ্রতিনিধি ও সুবিধাভোগীরা উপস্থিত ছিলেন।

কষ্টের পয়সায় কেনা জমি বেদখলের আশঙ্কা

কুষ্টিয়ায় তিন ভূমি দস্যুর ভয়ে তটস্থ মিলপাড়ার সাইফুল

নিজ সংবাদ ॥  কুষ্টিয়া শহরের বাহাদুরখালী মৌজায় অনেক কষ্টে পয়সা জমিয়ে সোয়া এক টুকরো জমি কিনেছিলেন মিলপাড়ার বাসিন্দা সাইফুল ইসলাম রাজা। সেই জমিতে শকুনের দৃষ্টি পড়েছে। ৩ ভূমিদস্যু সেই জমি জবর দখলে মরিয়া হয়ে উঠেছে। জমি দখলে বাধা দিলে তারা সাইফুলকে প্রাণনাশের হুমকি দিয়েছে। আবার কখনও তারা সাইফুলের কাছে মোটা অংকের চাঁদাও দাবি করছে। এ নিয়ে থানায় জিডিও করেছেন সাইফুল। মিলপাড়া রবীন্দ্র স্মরনীর বাসিন্দা সাইফুল ইসলাম রাজা অভিযোগ করে বলেন, তিনি ২০১৭ সালে ইয়াসমিন নামে এক মহিলার থেকে বাহাদুরখালী মৌজার ১১৯৯ খতিয়ান ১০৫০ দাগে সোয়া ৩ শতক জমি কিনেন। আড়–য়াপাড়ার দত্তপাড়া রোডের আব্দুল হামিদ ড্রাইভারের ছেলে মো. পিয়াস, আড়–য়াপাড়া বাহাদুর আলী লেনের ১ নং গলির মৃত আবুল হায়াতের ছেলে সওকত আলী ওরফে টন ও বাহির বোয়ালদহ গ্রামের আব্দুল লতিফের ছেলে মো. রাসেল এক বছর ধরে ওই জমি দখলের চেষ্টা করে আসছে। সাইফুল জানান, ওই ভূমি দস্যুরা এখন ওই জমি নিজেদের বলে দাবি করছে। জমি ছেড়ে না দিলে ভুমি দস্যুরা সাইফুলকে প্রাণনাশের হুমকি দিচ্ছে। এছাড়া সাইফুলকে জানিয়েছে এই জমি নিজ দখলে রাখতে হলে ৫ লাখ টাকা চাঁদা দিতে হবে, না হলে জমির মায়া ছেড়ে দিতে হবে। এ কারণে সাইফুল ও তার পরিবার চরম নিরাপত্তহীনতায় ভুগছে। সাইফুল আশঙ্কা করছে যে কোন সময় ওই  ভুমি দস্যুরা তার জমিটি দখল করে নিতে পারে। এ ছাড়া তার পরিবারের সদস্যদের বড় ধরণের করে দিতে পারে। তিনি এ ব্যাপারে কুষ্টিয়া মডেল থানায় জিডি করেছেন। তিনি এ ব্যাপারে পুলিশ ও প্রশাসনের হস্তক্ষেপ কামনা করেছেন। পুলিশের একটি সূত্র জানিয়েছে, গত এক সপ্তাহে পুলিশের কাছে জমি নিয়ে প্রায় শতাধিক অভিযোগ জমা পড়েছে। জমা পড়া অভিযোগগুলো খতিয়ে দেখছে পুলিশ। এর মধ্যে অন্যায়ভাবে দখল বা জমি দখলের চেষ্টা করা হচ্ছে এমন বিষয়ে দ্রুত পদক্ষেপ নেয়া হচ্ছে। এ বিষয়ে জানতে চাইলে সওকত আলী টন বলেন,‘ জমিটি নিয়ে ঝামেলা আছে। আমাদের বিরুদ্ধে দখলের যে অভিযোগ আনা হয়েছে সেটা ঠিক নয়।’ কুষ্টিয়ার পুলিশ সুপার এসএম তানভীর আরাফাত বলেন,‘ অনেকেই অভিযোগ নিয়ে আসছে। সত্যতা যাচাই করে ব্যবস্থা নেয়া হচ্ছে।’

ইবি’র সাবেক প্রক্টর মাহবুবরসহ তিন শিক্ষকের বিরুদ্ধে দুদকে অভিযোগ         

ইবি প্রতিনিধি ॥ শিক্ষক নিয়োগ বাণিজ্যে ঘুষ গ্রহনের অভিযোগ উঠেছে ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয়ের (ইবি) তিন শিক্ষকের বিরুদ্ধে। আরিফ হাসান খান (নাহিদ) নামে এক ব্যক্তি দুদকে এ অভিযোগ করেন। এ ঘটনায় অভিযোগকারীকে স্বাক্ষী দেয়ার জন্য তলব করেছে দুর্নীতি দমন কমিশন (দুদক)। অভিযোগ ওঠা তিন শিক্ষক হলেন ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয়ের সাবেক প্রক্টর ড. মোঃ মাহবুবর রহমান, সহযোগী অধ্যাপক রুহুল আমীন ও সহকারী অধ্যাপক এস এম আব্দুর রহিম। আগামী রবিবার (২৭ সেপ্টেম্বর) সকাল ১০টায় অভিযোগকারীকে দুর্নীতি দমন কমিশন এর প্রধান কার্যালয়ে উপস্থিত হয়ে স্বাক্ষীকে বক্তব্য প্রদানের জন্য বলা হয়েছে।

দুর্নীতি দমন কমিশনের উপপরিচালক ও অনুসন্ধানকারী কর্মকর্তা মোঃ আব্দুল মাজেদ স্বাক্ষরিত প্রেরিত চিঠিতে এ তথ্য জানা গেছে।

চিঠিতে জানা গেছে, ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয়ের সাবেক প্রক্টর ড. মোঃ মাহবুবর রহমান, সহযোগী অধ্যাপক রুহুল আমীন ও সহকারী অধ্যাপক এস এম আব্দুর রহিম এর বিরুদ্ধে শিক্ষক নিয়োগ বাণিজ্যে ঘুষ গ্রহনের অভিযোগ উঠেছে। অভিযোগের সুষ্ঠু অনুসন্ধানের স্বার্থে বক্তব্য গ্রহণ ও শ্রবণ করা একান্ত প্রয়োজন। অভিযোগ বিষয়ে অনুসন্ধানপূর্বক অনুসন্ধান প্রতিবেদন দাখিলের জন্য মোঃ আব্দুল মাজেদকে অনুসন্ধানী কর্মকর্তা হিসেবে নিয়োগ করা হয়েছে। অভিযোগের বিষয়ে আগামী ২৭ সেপ্টেম্বর সকাল ১০টায় দুর্নীতি দমন কমিশন প্রধান কার্যালয়, ১, সেগুনবাগিচা, ঢাকায় উপস্থিত হয়ে অভিযোগকারী আরিফ হাসান খানকে বক্তব্য প্রদান পূর্বক অনুসন্ধান কাজে সহযোগিতার অনুরোধ করা হলো। ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয়ের ভারপ্রাপ্ত রেজিষ্ট্রার এস এম আব্দুল লতিফ জানান, এমন একটি চিঠি দপ্তরে এসেছে। তবে ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয়ের সাবেক প্রক্টর ড. মোঃ মাহবুবর রহমানের কাছে এ ব্যাপারে জানতে চাইলে তিনি জানান, বিষয়টি আমার জানা নেই। যদি জানতাম অবশ্যই আপনাদের জানাতাম।

সুত্রে জানা গেছে, সম্প্রতি কুষ্টিয়া ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয়ে শিক্ষক নিয়োগ বাণিজ্যে নিয়ে সাবেক প্রক্টর ড. মোঃ মাহবুবর রহমানসহ কয়েকজন শিক্ষকের জড়িত থাকার অভিযোগে প্রিন্ট ও ইলেকট্রনিক্স মিডিয়ায় সংবাদ প্রকাশিত হয়। এছাড়া বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক সংগঠন ও বঙ্গবন্ধু পরিষদের নেতৃবৃন্দ শিক্ষক নিয়োগ বাণিজ্যে জড়িত থাকায় সাবেক প্রক্টর মাহবুবর রহমানের বিরুদ্ধে বিভিন্ন দপ্তরে অভিযোগ পাঠান। ইবি কর্মকতা সমিতির সাধারণ সম্পাদক ও কর্মকর্তা  ফেডারেশনের মহাসচিব মীর মোহম্মদ মোর্শেদুর রহমান জানান, আপনাদের সবই জানা। শুধু এটুকু বলতে চাই, দুর্নীতিবাজ যেই হোক না কোন দেশের প্রচলিত আইনে তার বিচার হওয়া উচিত। এ বিষয়ে জানতে বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রো-ভিসি প্রফেসর ড. শাহীনুর রহমান এর সাথে যোগাযোগ করার চেষ্টা করা হলেও সম্ভব হয়নি।