কলকাতায় সক্রিয় হচ্ছেন শাকিব খান

বিনোদন বাজার ॥ নতুন বছরে ঢালিউড সুপারস্টার শাকিব খান ভক্তদের জন্য সুখবর রয়েছেই। নতুন বছরে কলকাতার বড় প্রযোজনা প্রতিষ্ঠানের সিনেমায় কাজ করবেন এই অভিনেতা। এ মাসের শেষেই কলকাতায় গিয়ে ছবিতে চুক্তিবদ্ধ হবেন- এমনটাই জানা গেছে শাকিব খানের বিশ্বস্ত সূত্রে। এদিকে শাকিব খান কলকাতার বড় প্রযোজনা সংস্থায় কাজ করতে চলেছেন বলে টালিউডপাড়ায় বেশ গুঞ্জন শোনা যাচ্ছে। এই বিষয়ে শাকিব খানের কাছে জানতে চাইলে তিনি রহস্যের হাসি দিয়ে বললেন, ‘এখনই সবকিছু খোলাসা করছি না। সময় হলেই ঘটা করে সবাইকে জানাব। আমি কথা কম বলে কাজ চাই।’ শাকিব খানের রহস্যময় হাসির আড়ালে যে বড় চমক অপেক্ষা- এটা ঠিকই বোঝা গেল। তবে চমকটি জানতে শাকিব ভক্তদের আর কয়েকটা দিন অপেক্ষা করতে হবে। এদিকে শাকিব খান নিয়মিত দেশীয় সিনেমায় টানা কাজ করার কারণে অনেকেই ভেবে নিয়েছিলেন কলকাতায় শাকিবের চাহিদা ফুরিয়েছে। এ নিয়ে সিনেপাড়ায় নানা গুঞ্জনও ছিল। এই বিষয়ে শাকিব খান বলেন, দেখুন- বাংলাদেশে বড় বাজেটের ছবি হচ্ছে না। ইন্ডাস্ট্রি সচল রাখতে ভালো ছবি প্রয়োজন। তাই আমি এই বছর শুধু দেশের সিনেমায় সময় দিয়ে কাজ করছি। দিন শেষে আমি বাংলাদেশেরই সন্তান। দেশের ইন্ডাস্ট্রির যে কোনো ত্যাগ করতে আমি প্রতিজ্ঞাবদ্ধ। তিনি আরও বলেন, ‘কলকাতার ছবির প্রযোজক আমার সঙ্গে প্রতিনিয়ত যোগাযোগ রাখছেন। তাদেরও বলেছি, দেশের ছবি প্রায়োরিটি দিয়ে কলকাতার ছবি করব। তাছাড়া কে, কী বলল এ নিয়ে কখনো আমার মাথাব্যথা ছিল না। এখনো নেই। পাছে লোকে অনেক কিছুই বলবে। কাজটা করে দেখানোর মানুষ খুবই কম।’ বর্তমানে শাকিব খান ‘শাহেনশাহ’ ছবির শুটিং করছেন। শামীম আহমেদ রনির পরিচালনায় ছবিতে শাকিব খানের বিপরীতে অভিনয় করছেন নুসরাত ফারিয়া ও নবাগতা রোদেলা।

পলিথিন হাউস’ নিয়ে সিঙ্গাপুরে প্রাচ্যনাট

বিনোদন বাজার ॥ দেশের অন্যতম থিয়েটার সংগঠন ‘প্রাচ্যনাট’ দ্বিতীয়বারের মতো ‘এশিয়ান ইয়ুথ থিয়েটার ফেস্টিভাল-২০১৮’-এ অংশগ্রহণ করবে। এই উৎসবটি ১৬ থেকে ১৮ নভেম্বর সিঙ্গাপুরে অনুষ্ঠিত হচ্ছে। যার আয়োজন করছে সিঙ্গাপুরের তারুণ্যনির্ভর দল বাডজ্ থিয়েটার। তিন দিনের এই উৎসবে অভিনেতা, নাট্যকার, লেখক ও নির্দেশক আজাদ আবুল কালামের লেখা ‘পলিথিন হাউস’ নাটকটি উপস্থাপন করবে প্রাচ্যনাট। সাতজন কুশীলবের ‘পলিথিন হাউস’ প্রযোজনাটি নির্দেশনা দিয়েছেন সাইফুল ইসলাম এবং সহকারী নির্দেশনায় রয়েছেন মো. শওকত হোসেন সজিব। এই প্রযোজনার মূল আলোচ্য বিষয়ের মধ্যে রয়েছে বর্তমান বাংলাদেশে অবস্থানরত রোহিঙ্গা জনগোষ্ঠীদের সংকটময় জীবনযাপনের এক দৃষ্টান্তমূলক নিদর্শন। যা বিশ্ব বিবেকের কাছে এখন পর্যন্ত প্রশ্নবিদ্ধ হয়ে রয়েছে। সিঙ্গাপুরে নাটকটির প্রথম প্রদর্শনী হবে উৎসবের শেষ দিন ১৮ নভেম্বর। গত ১৫ নভেম্বর রাতের ফ্লাইটে প্রাচ্যনাটের সদস্যরা সিঙ্গাপুরে গিয়েছে। সিঙ্গাপুরে প্রাচ্যনাটের ৯ সদস্যের মধ্যে রয়েছেন রকি, শর্মি, শাহীন, নিলয়, তাহাদিল, প্রিয়ম, শর্মীলা, সজিব ও সাইফুল ইসলাম। জানা গেছে, সিঙ্গাপুরে অনুষ্ঠিতব্য ‘এশিয়ান ইয়ুথ থিয়েটার ফেস্টিভাল-২০১৮’-এ মোট ১০টি দল উৎসবে অংশগ্রহণ করছে। যার মধ্যে সিঙ্গাপুরের স্থানীয় ৩টি দলসহ ইন্দোনেশিয়া, জাপান, বাংলাদেশ, ফিলিপাইন, লাওস, ব্রুনি ও মালয়েশিয়ার থিয়েটার দল তাদের প্রযোজনা নিয়ে অংশগ্রহণ করবে। অনুষ্ঠানে কর্মশালা, সেমিনার, শিল্প ও কারুশিল্প এবং অন্যান্য অনুষ্ঠান অন্তর্ভুক্ত রয়েছে। আন্তর্জাতিক এই উৎসবে নাটক প্রদর্শনীর পাশাপাশি ‘ডেভেলপিং কোরাস উইথ রিদম এন্ড থিম’ নামে একটি কর্মশালা পরিচালনা করবে প্রাচ্যনাট। এতে উৎসবে অংশগ্রহণকারী সব দেশের প্রতিনিধিরা অংশগ্রহণ করে। ১৭ নভেম্বর কর্মশালাটি অনুষ্ঠিত হবে।

পটল চাষে আধুনিক প্রযুক্তি ব্যবহার

কৃষি প্রতিবেদক ॥ পটল একটি জনপ্রিয় উচ্চমূল্য সবজি। পটল মূলত খরিপ মৌসুমের ফসল। তবে সারা বছর ধরেই কম-বেশি পাওয়া যায়। অন্যান্য সবজির তুলনায় এর বাজারমূল্য তুলনামূলকভাবে বেশি থাকে। গ্রীষ্ম ও বর্ষাকালে বাজারে যখন সবজির ঘাটতি দেখা দেয় তখন পটল গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে। বাংলাদেশের মোট সবজির চাহিদার প্রায় ২০ শতাংশ পটল পূরণ করে থাকে। সুস্থ থাকার জন্য একজন মানুষের দৈনিক কমপক্ষে ২৩৫ গ্রাম সবজি খাওয়া প্রয়োজন। কিন্তু বালাদেশে উৎপাদিত সবজির মাথাপিছু দৈনিক গড় প্রাপ্যতা ৮২ গ্রাম। চাহিদার তুলনায় প্রাপ্যতার এই বিশাল ঘাটতি পূরণের জন্য দেশের সবজি উৎপাদন অবশ্যই বাড়ানো প্রয়োজন। বাংলাদেশের জলবায়ু ও আবহাওয়া পটল চাষের উপযোগী। দেশের সকল এলাকাতেই পটল চাষ করা সম্ভব। তবুও প্রযুক্তি জ্ঞানের অভাবে দেশের কিছু নির্দ্দিষ্ট এলাকায় এর চাষ সীমাবদ্ধ। বৃহত্তর রাজশাহী, রংপুর, বগুড়া, পাবনা, ফরিদপুর, যশোর ও কুষ্টিয়া জেলায় পটল চাষ বেশি হয়। দেশের অন্যান্য এলাকায় পটল চাষ সম্প্রসারণ করে আধুনিক প্রযুক্তি ব্যবহারে কৃষকদের উদ্বুদ্ধ করলে একদিকে যেমন  মোট সবজির উৎপাদন বাড়বে অপরদিকে কৃষকদের আর্থিক সচ্ছলতাও বাড়বে।

জলবায়ু ও মাটি ঃ পটল গাছের দৈহিক বৃদ্ধি এবং ফলনের জন্য উষ্ণ এবং আর্দ্র আবহাওয়া দরকার। এ জন্য খরিপ মৌসুম পটল চাষের উপযুক্ত সময়। পানি নিষ্কাশনের সুবিধা আছে এমন উঁচু ও মাঝারী উঁচু জমি এবং বেলে দো-আঁশ থেকে  দো-আঁশ মাটি পটল চাষের জন্য উপযোগী। পটল বেশ খরা সহিষ্ণু। তবে পানির ঘাটতি দীর্ঘায়িত হলে ফলন কমে যায়।

জাত ঃ বাংলাদেশের বিভিন্ন জেলায় স্থানীয় অনেক জাতের পটল দেখা যায়। যেমন- বালি, মুর্শিদাবাদী, কানাইবাঁশী এসব। জাতগুলোর মধ্যে আকার এবং রংয়ের অনেক  বৈচিত্র লক্ষ্য করা যায়। যেমন- কোনটি লম্বা ও চিকন, কোনটি লম্বা ও মোটা,  কোনটি খাট ও মোটা, কোনটি গাঢ় সবুজ, কোনটি হালকা সবুজ, কোনটি  ডোরাকাটা, কোনটি ডোরাবিহীন, কোনটির পুরু ত্বক আবার কোনটির পাতলা ত্বক। এসব জাতই এতদিন চাষ হয়ে আসছিল। সম্প্রতি বাংলাদেশ কৃষি গবেষণা ইনস্টিটিউট বারি পটল-১ ও বারি পটল-২ নামে পটলের দুটি জাত উদ্ভাবন করেছে। জাতগুলো উচ্চ ফলনশীল এবং রোগবালাই সহিষ্ণু। উপযুক্ত পরিচর্যা করলে জাতগুলো প্রতি শতাশে ১২০ থেকে ১৫০ কেজি ফলন দিয়ে থাকে।

বপন সময় ঃ বাংলাদেশে বর্ষার শেষে আশ্বিন-কার্তিক মাস এবং শীতের শেষে ফাল্গুন-চৈত্র মাস পটল লাগানোর উপযুক্ত সময়। আশ্বিন-কার্র্তিক মাসে পটলের কাটিং বা শিকড় লাগালে তীব্র শীত শুরুর আগেই গাছের কিছুটা অংগজ বৃদ্ধি হয়ে থাকে। এতে জীবনকাল কিছুটা দীর্ঘায়িত হলেও ফালগুন-চৈত্র মাসে আগাম ফলন পাওয়া যায় এবং বাজারমূল্য বেশি পাওয়া যায়। বৃষ্টিবহুল এলাকায় বিশেষ করে চট্টগ্রাম ও সিলেট অঞ্চলে অবশ্যই আশ্বিন-কার্তিক মাসে পটল লাগানো উচিত। ফালগুন-চৈত্র মাসে পটল লাগালে গাছ দ্রুত বাড়ে, জীবনকাল কমে যায় এবং জ্যৈষ্ঠ-আষাঢ় মাসে ফল আসা শুরু হয়। চট্টগ্রাম অঞ্চলে পানের বরজে ছায়াদানকারী গাছ হিসাবে আশ্বিন-কার্তিক মাসে পটল লাগানো হয়। চরাঞ্চলে বর্ষজীবি ফসল হিসাবে প্রতি বছর আশ্বিন-কার্তিক মাসে পটল চাষ করা হয়। পলিব্যাগে চারা করে মূল জমিতে শ্রাবন-ভাদ্র মাসে লাগানো গেলে অগ্রহায়ণ-পৌষ মাসে ফলন পাওয়া যায়।

বংশ বিস্তার ঃ পটল একটি পরপরাগায়িত উদ্ভিদ। এর স্ত্রী ও পুরুষ ফুল আলাদা গাছে ফোটে। বীজ দ্বারা এর বংশবিস্তার করা হয় না। বীজ থেকে জন্মানো গাছে ফুল আসতে প্রায় দুই বছর সময় লাগে। কন্দমূল অথবা কান্ডের শাখা কলম দিয়ে পটলের বংশবিস্তার করা হয়। শাখা কলমের ক্ষেত্রে পরিপক্ক কান্ড ব্যবহার করা হয়। পটলের কান্ড মরে গেলেও মূল জীবিত থাকে। শীতের শেষে কান্ড থেকে নতুন চারা বের হয়। পটলের শাখা কলম বা লতার কাটিং করার জন্য একাধিক পদ্ধতি রয়েছে।  যেমন- প্রায় এক বছর বয়সের মোটা আকারের লতা ৫০ সে.মি. বা একটু বেশি লম্বা করে কেটে নিয়ে রিংয়ের মত করে পেঁচিয়ে মূল জমিতে বেডে লাগানো যায়। এতে ৪-৫ টি গিট মাটির নিচে থাকে এবং একটি গিট মাটির উপরে থাকে। মূল জমির বেডে নির্দ্দিষ্ট দূরত্বে লাঙ্গল দিয়ে ১৫ সে.মি. গভীর নালা করে পরিপক্ক লতা লম্বা করে নালায় বিছিয়ে মাটি দিয়ে ঢেকে দেয়া হয়। এক্ষেত্রে লতার দুই প্রান্ত মাটির উপরে উন্মুক্ত থাকে। পরিপক্ক লতা কেটে রিংয়ের মতো করে পেঁচিয়ে বাড়িতে বা নার্সারীতে ছায়ায় লাগানো হয়। এক্ষেত্রে বেশ কয়েকটি গিট মাটি দিয়ে ঢাকা থাকে। এরপর গজানো চারা মুলসহ উঠিয়ে নিয়ে বেডে লাগানো হয়। শাখাকলম লাগানোর সময় মাটিতে পর্যাপ্ত রস না থাকলে কলম শুকিয়ে মারা যায়। এক্ষেত্রে পরিব্যাগে চারা গজিয়ে নিলে মূল জমিতে সময় মতো লাগানো যায়। এ পদ্ধতিতে খরচ কিছুটা বাড়লেও চারার মৃত্যুর হার অনেক কমে যায় ফলে মোট উৎপাদন বেড়ে যায়। মাটিতে আর্দ্রতা কম থাকলে একটু গভীরে শাখা কলম লাগাতে হয়। তবে বেশি আর্দ্র জমিতে কলম লাগালে তা পচে যেতে পারে।

জমি তৈরি ও রোপণ ঃ পটলের জমি গভীর করে ৪-৫ টি চাষ ও মই দিয়ে মাটি ঝুরঝুরে করে তৈরি করে নিতে হয়। এতে পটলের মূলের বিস্তার সহজ হয় এবং গাছ সহজেই মাটি থেকে পানি ও পুষ্টি উপাদান গ্রহণ করতে পারে। জমি চাষ করার পর  বেড তৈরি করে নিতে হয়ে। বেড পদ্ধতিতে পটল চাষ করা ভাল। এতে বর্ষাকালে  ক্ষেত নষ্ট হয় না। রোপণ পদ্ধতির উপর নির্ভর করে বেডের প্রস্থ ও রোপণ দূরত্ব কম-বেশি হয়ে থাকে। জমির দৈর্ঘ বরাবর ২৬০ সে.মি. চওড়া বেড তৈরি করে নিয়ে পাশাপাশি দুটি বেডের মাঝে ৩০-৩৫ সে.মি. প্রস্থ এবং ২০ সে.মি. গভীর নালা রাখতে হয়। এতে সেচ ও নিকাশের সুবিধা হয়।  প্রতি বেডে ২০০ সে.মি. দূরত্বে লাঙ্গল দিয়ে ১০-১৫ সে.মি. গভীর করে দুটি নালা করে নিতে হয়।  প্রতি নালায় ৫০  সে.মি. পর পর ১০-১৫ সে.মি. গভীরে শাখা কলম লাগাতে হয়। দেশের বৃষ্টিবহুল এলাকায়, সিলেট ও চট্টগ্রাম অঞ্চলে, চাষের জন্য বেডের প্রস্থ হবে ১৫০ সে.মি.। প্রতি বেডের মাঝ বরাবর এক সারিতে ১৫০ সে.মি. দূরে দূরে  মাদা তৈরি করে মাদায় চারা রোপণ করতে হয়। মাদার আকার হবে যথাক্রমে ৫০ ী  ৫০ ী ৪০  সে.মি.। এক্ষেত্রে সেচনালার প্রস্থ হবে ৪০-৪৫ সে.মি.।  একসঙ্গে চারা লাগালেও স্ত্রী ফুলের ১০-১৫ দিন পরে পটলের পুরুষ ফুল ফোটে। পুরুষ ফুলের অভাবে প্রথম দিকে ফোটা স্ত্রী ফুলগুলিতে ফল হয় না। তাই মূল জমিতে সারিতে বা মাদায় প্রতি ১০ টি স্ত্রী গাছের পর পর একটি পুরুষ গাছ ১০-১৫ দিন আগেই লাগানো উচিত।

সার প্রয়োগ ঃ পটলের ভাল ফলন পাওয়ার জন্য মাঝারী উর্বর জমিতে বিঘাপ্রতি ১৩০০ কেজি গোবর বা কম্পোষ্ট, ৪০ কেজি ইউরিয়া, ২৭ কেজি টিএসপি, ২০  কেজি এমওপি এবং ৮ কেজি জিপসাম সার ব্যবহার করা প্রয়োজন। ইউরিয়া ছাড়া বাকী সব সারের অর্ধেক পরিমাণ জমি তৈরির সময় এবং বাকী অর্ধেক সার মাদায় দিতে হবে। ইউরিয়া সার চারা গজানোর ২০ দিন পর পর সমান ৩ কিস্তিতে মাদার চারপাশে প্রয়োগ করতে হবে। পটলের জমিতে মাচা না দিলে ইউরিয়া সার দেয়া অসুবিধাজনক। সেক্ষেত্রে অর্ধেক ইউরিয়া বেডে এবং বাকী অর্ধেক ইউরিয়া চারা গজানোর ৩০ দিন পর গাছের গোড়ার চারপাশে মাটিতে মিশিয়ে দিতে হবে। পটলের ফলন প্রথম দিকে বাড়তে থাকে পরে আস্তে আস্তে কমতে থাকে। ফলন একেবারে কমে আসলে মাদার চারপাশ পরিষ্কার করে হালকাভাবে মাটি কুপিয়ে মাদাপ্রতি অতিরিক্ত ২০-৩০ গ্রাম ইউরিয়া, ৩০-৩৫ গ্রাম টিএসপি এবং ২০-২৫ গ্রাম এমওপি সার প্রয়োগ করলে গাছে নতুন নতুন ফুল ধরে এবং ফলন অনেক বেড়ে যায়। এভাবে দুবার সার দেয়া যেতে পারে। পরিচর্যা ঃ ভাল ফলন পাওয়ার জন্যে পটলের জমিতে বিভিন্ন পরিচর্যা করতে হয়।  যেমন- বাউনি বা মাচা দেয়া: পটল একটি লতানো উদ্ভিদ। তাই পটল গাছের সুষ্ঠু বৃদ্ধি এবং ভাল ফলনের জন্য বাউনি বা মাচা দেয়া অবশ্যই দরকার। বাঁশের কাঠির সাহায্যে চারা গাছকে মাচায় তুলে দেয়া হয়। এক মিটার উচ্চতায় মাচা বা বাউনি দিলে পটলের ফলন প্রায় দ্বিগুণ পাওয়া যায়। পটলের মাচা বা বাউনি দু’ভাবে দেয়া যায়। বাঁশের তৈরি আনুভূমিক এবং রশি দ্বারা তৈরি খাড়া বা উল্লম্ব। মাচার দৈর্ঘ ও প্রস্থ হবে বেডের সমান। পটলের আকর্ষি ছোট হওয়ায় বাউনি যত চিকন আকারের  দেয়া যায় ততই ভাল। পটলের মাচা বা বাউনি বেশ খরচ সাপেক্ষ। তাই অনেক এলাকায় পটল চাষীরা বাউনির বদলে মাটির উপর খর-কুটা বা কচুরিপানা দিয়ে তার উপর গাছ তুলে দিয়ে থাকেন। এতেও ভাল ফলন পাওয়া যায় এবং উৎপাদন খরচও কম হয়। তবে পটলের মাটির সংস্পর্শে থাকা অংশ ফ্যাকাশে হলুদ হয়ে যায় এবং বাজারমূল্য কিছুটা কমে যায়। যেসব এলাকায় বৃষ্টিপাত কম হয় সেসব এলাকায় এ পদ্ধতি ব্যবহার করা যায়। তবে রপ্তানীযোগ্য উচ্চ গুণাগুণসম্পন্ন পটল পেতে হলে অবশ্যই বাউনি বা মাচা দিতে হবে।

পরাগায়ন ঃ চারা লাগানোর ৯০ দিনের মাথায় পটলের ফুল আসতে শুরু করে। পটল একটি পরপরাগায়িত উদ্ভিদ। স্ত্রী ফুল ও পুরুষ ফুল আলাদা গাছে ফোটে। কাজেই পরাগায়ন না হলে পটলের ফলন পাওয়া যাবে না। পটলের পরাগায়ন সাধারণত বাতাস এবং কীটপতঙ্গের দ্বারা হয়ে থাকে। তবে জমিতে পুরুষ ফুলের সংখ্যা খুব কমে গেলে কৃত্রিমভাবে পরাগায়ন করা প্রয়োজন হয়। সকাল ৬টা থেকে ৭টা পটলের পরাগায়ন করার উপযুক্ত সময়। কৃত্রিম পরাগায়ন করার জন্য একটি পুরুষ ফুল তুলে নিয়ে পুংকেশর ঠিক রেখে পাপড়িগুলি ছিড়ে ফেলতে হয়। তারপর পুংকেশর দ্বারা সদ্যফোটা প্রতিটি স্ত্রী ফুলের গর্ভমুন্ডে ২-৩ বার স্পর্শ করতে হবে। এর ফলে গর্ভমুন্ডের মাথায় পরাগরেণু আটকে যাবে এবং পরাগায়ন হবে। একটি পুরুষ ফুল দিয়ে ৮-১০ টি স্ত্রী ফুল পরাগায়ন করা যায়। এছাড়াও পরুষ ফুল সংগ্রহ করে পরাগরেণু আলাদা করে পানিযুক্ত একটি প্লাস্টিকের ব্যাগে নিয়ে হালকা ঝাকি দিয়ে পরাগরেণু পানিতে মিশিয়ে পরাগরেণু মিশ্রিত পানি ড্রপার দিয়ে ১ ফোটা করে প্রতিটি স্ত্রী ফুলের গর্ভমূন্ডে লাগিয়েও পরাগায়ন করা যায়। কৃত্রিম পরাগায়নের ফলে পটলের ফলন অনেক বেড়ে যায়।

মুড়ি ফসল ঃ পটল গাছ থেকে প্রথম বছর ফসল সংগ্রহ করার পর গাছের গোড়া নষ্ট না করে রেখে দিয়ে পরবর্তী বছর পরিচর্যার মাধ্যমে গুড়িচারা থেকে যে ফসল পাওয়া যায় তাকেই মুড়ি ফসল বলে। উঁচু জমিতে পটল চাষ করলে মুড়ি ফসল করা যায়। আশ্বিন-কার্তিক মাসে পুরানো শুকনো লতা কেটে দিতে হয়। তারপর জমির আগাছা পরিষ্কার করে কোদাল দিয়ে মাটি কুপিয়ে দিতে হয়। এতে গাছ নতুনভাবে উদ্বীপিত হয়। মুড়ি ফসলেও নতুন ফসলের মতো সার প্রয়োগ ও অন্যান্য পরিচর্যা করতে হয়। পটল গাছ একবার লাগালে ৩ বছর পর্যন্ত ফলন দিয়ে থাকে। পটল গাছে ১ম বছর ফলন কম হয়, ২য় বছর ফলন বেশি হয় এবং ৩য় বছর ফলন কমতে থাকে। একবার লাগানো পটল গাছ ৩ বছরের বেশি রাখা উচিত নয়।

বালাই দমন ঃ পটলের গাছ ও ফল বিভিন্ন প্রকার পোকা ও রোগ দ্বারা আক্রান্ত হতে পারে। এদের মধ্যে ফলের মাছি পোকা, কাঁঠালে পোকা এবং পাউডারি মিলডিউ  রোগে আক্রান্ত হওয়ার সম্ভাবনা বেশি।

ফসল তোলা ও ফলন ঃ পটল কচি অবস্থায় সংগ্রহ করা উচিত। ফুল ফোটার ১০-১২ দিন পর পটল সংগ্রহের উপযোগী হয়। পটল এমন পর্যায়ে সংগ্রহ করা উচিত যখন ফলটি পূর্ণ আকার প্রাপ্ত হয়েছে কিন্তু পরিপক্ক হয়নি। বেশি পাকা ফলের বীজ শক্ত হয়ে যায় এবং খাবার অনুপযোগী হয়ে পড়ে। জাত ও পরিচর্যার উপর পটলের ফলনের তারতম্য হয়। আধুনিক জাতগুলো চাষ করলে এবং সঠিক পরিচর্যা করলে বিঘাপ্রতি ৪০০০ থেকে ৫০০০ কেজি ফলন পাওয়া সম্ভব। পুষ্টিমান ও ব্যবহার ঃ উচ্চ পুষ্টিমান ও বহুবিধ ব্যবহারের জন্য পটল সবার পছন্দের একটি সবজি। খাবার উপযোগী প্রতি ১০০ গ্রাম পটলে রয়েছে ২.৪ গ্রাম প্রোটিন, ৪.১ গ্রাম শ্বেতসার, ০.৬ গ্রাম চর্বি, ৭৯০ মা.গ্রা. ক্যারোটিন, ০.৩০ মি.গ্রা. ভিটামিন বি-১, ০.০৩ মি.গ্রা. ভিটামিন বি-২, ২৯ মি.গ্রা. ভিটামিন সি, ২০ মি.গ্রা. ক্যালসিয়াম, ১.৭ মি.গ্রা. আয়রণ, এবং ৩১ কিলো ক্যালরি খাদ্যশক্তি। পটলের ব্যবহারেও রয়েছে বৈচিত্র। বিভিন্নভাবে পটল ব্যবহার হয়ে থাকে। যেমন- তেলে ভাজি পটল, পটল মিশ্র সবজি, পটল চিংড়ি, পটল মোরব্বা, আলু-পটলের দোলমা এসব। এছাড়াও বিভিন্ন তরকারীতে পটল ব্যবহার করা হয়। পটল সহজেই হজম হয়। তাই হৃদরোগীদের জন্য পটল উপকারী।

আয় ব্যয় ঃ গবেষণায় দেখা গেছে এক বিঘা জমিতে পটল চাষ করলে প্রায় ৭ হাজার টাকা খরচ হয়। আর এক বিঘা জমির পটল বিক্রি করে আয় হয় কমপক্ষে ২১ হাজার টাকা। খরচ বাদে এক বিঘা জমিতে নীট লাভ হয় ১৪ হাজার টাকা। কাজেই নীট আয় ও আয়-ব্যয়ের অনুপাত বিবেচনায় নি:সন্দেহে বলা যায় পটল একটি লাভজনক সবজি।

ইতালির সঙ্গে ড্রয়ে গ্রপ সেরা পর্তুগাল

ক্রীড়া প্রতিবেদক ॥ ম্যাচ জুড়ে পর্তুগালের রক্ষণে চাপ ধরে রেখে একের পর এক আক্রমণ করে গেল ইতালি। কিন্তু ফিনিশিংয়ের ব্যর্থতায় জালের দেখা পেল না। সাবেক বিশ্ব চ্যাম্পিয়নদের রুখে দিয়ে প্রথম দল হিসেবে উয়েফা নেশন্স লিগের সেমি-ফাইনালে উঠলো বর্তমান ইউরো চ্যাম্পিয়নরা। সান সিরোয় শনিবার রাতে গোলশূন্য ড্র করে ‘এ’ লিগের গ্র“প-৩ এর শীর্ষস্থান নিশ্চিত করে পর্তুগাল। সেপ্টেম্বরে প্রথম লেগে লিসবনে চারবার বিশ্বকাপ জয়ীদের ১-০ গোলে হারিয়েছিল ফের্নান্দো সান্তোসের দল। ‘এ’ লিগের চার গ্র“পের সেরা চার দল নিয়ে আগামী বছর জুনে হবে টুর্নামেন্টের শিরোপা লড়াই। ম্যাচের শুরু থেকে রক্ষণে চাপ বাড়ানো ইতালি চতুর্থ মিনিটেই এগিয়ে যেতে পারতো। কিন্তু অনেক দূর থেকে লরেন্সো ইনসিনিয়ের বুলেট শট ঝাঁপিয়ে ঠেকান গোলরক্ষক। ফিরতি বল কাছ থেকে উড়িয়ে মারেন চিরো ইম্মোবিলে। ৩২তম মিনিটে গতিতে ডিফেন্ডারদের পেছনে ফেলে ডি-বক্সে ঢুকে ইম্মোবিলের নেওয়া শট এগিয়ে এসে রুখে দেন গোলরক্ষক রুই পাত্রিসিও। তিন মিনিট পর লিওনার্দো বোনুচ্চির হেড অল্পের জন্য লক্ষ্যভ্রষ্ট হয়। ৭৩তম মিনিটে পর্তুগালের প্রথম উল্লেখযোগ্য সুযোগে ডি-বক্সের মধ্যে থেকে জোয়াও মারিওর শট ক্রসবারের একটু উপর দিয়ে যায়। দুই মিনিট পর ইকার্দো কারবাইয়োর নিচু শট ঝাঁপিয়ে ঠেকিয়ে ইতালির আশা বাঁচিয়ে রাখেন গোলরক্ষক জানলুইজি দোন্নারুমা। কিন্তু শেষ পর্যন্ত সাফল্য আর মেলেনি। পর্তুগালের বিপক্ষে ঘরের মাঠে এই নিয়ে টানা ১২ ম্যাচ অপরাজিত রইলো ইতালি। আগের ১১ ম্যাচের ১০টিতেই জিতেছিল রাশিয়া বিশ্বকাপের বাছাই পেরুতে ব্যর্থ হওয়া দলটি। তিন ম্যাচে দুই জয় ও এক ড্রয়ে পর্তুগালের পয়েন্ট ৭। চার ম্যাচে এক জয় ও দুই ড্রয়ে ইতালির পয়েন্ট ৫। তিন ম্যাচে ১ পয়েন্ট নিয়ে ‘বি’ লিগে অবনমন নিশ্চিত হয়ে গেছে পোল্যান্ডের।

আমি নই, এমবাপে ব্যালন ডি’অরের যোগ্য – আজার

ক্রীড়া প্রতিবেদক ॥ এ বছর নিজের ব্যালন ডি’অর জয়ের সম্ভাবনা নাকচ করে দিয়েছেন বেলজিয়ামের এদেন আজার। পুরস্কারটি পাওয়ার দৌড়ে তরুণ ফরাসি ফরোয়ার্ড কিলিয়ান এমবাপেকে এগিয়ে রাখছেন চেলসির এই প্লেমেকার। ২০০৭ সালে কাকার পর থেকে ক্রিস্তিয়ানো রোনালদো ও লিওনেল মেসির বাইরে ব্যালন ডি’অর জিততে পারেনি কেউ। রাশিয়া বিশ্বকাপে পর্তুগাল ও আর্জেন্টিনা দুই দলই শেষ ষোলো থেকে ছিটকে যাওয়ায় এবারে বর্ষসেরার লড়াইয়ে সমান পাঁচবার করে পুরস্কারটি জেতা দুই তারকাকে পিছিয়ে রাখছেন অনেকেই। গত এক দশকের মধ্যে এবারই পুরস্কারটির জন্য সবচেয়ে জমজমাট লড়াই হচ্ছে। দৌড়ে আছেন বেশ কয়েকজন খেলোয়াড়। এ বছর উয়েফা বর্ষসেরা খেলোয়াড় ও ‘দ্য বেস্ট ফিফা মেনস প্লেয়ার’ দুটি পুরস্কারই জেতা রিয়াল মাদ্রিদের লুকা মদ্রিচকে এগিয়ে রাখছেন অনেকেই। কিন্তু রাশিয়া বিশ্বকাপের সেরা খেলোয়াড়ের পুরস্কার ‘গোল্ডেন বল’ জয়ী এই ক্রোয়াট মিডফিল্ডার চলতি মৌসুমে এখন পর্যন্ত আলো ছড়াতে পারেননি। প্রথমবারের মতো বেলজিয়ামকে বিশ্বকাপের সেমি-ফাইনালে তুলতে বড় অবদান রাখা আজার চেলসির হয়েও নজর কেড়েছেন। কিন্তু নিজেকে ব্যালন ডি’অরের যোগ্য বলে মনে করেন না ২৭ বছর বয়সী এই খেলোয়াড়। “আমারও যদিও খুব ভালো একটা বছর কেটেছে, তবে আমাদের পা মাটিতে রাখতে হবে। ব্যালন ডি’অর আমার প্রাপ্য না। আমি মনে করি, আমার চেয়ে আরও ভালো সব খেলোয়াড় আছে।” “আমি লুকা মদ্রিচের নাম বলতাম। কিন্তু অগাস্ট বা সেপ্টেম্বর থেকে সে কিছুটা কম ভালো খেলেছে। তাই আমরা যদি এই মৌসুমের শুরুটা বিবেচনায় নেই, আমি বলব কিলিয়ান এমবাপে।” “আমার লক্ষ্য ব্যালন ডি’অর জেতা নয়। লক্ষ্যটা হলো মাঠে যতটা পারি মজা করা। কোনোদিন যদি আমি এটা জিতি তাহলে খুব ভালো হবে, আর যদি না জিতি তাতেও কোনো সমস্যা নেই।” চলতি মৌসুমে ইংলিশ প্রিমিয়ার লিগে ১১ ম্যাচে সাত গোল করার পাশাপাশি সতীর্থদের চারটি গোলে অবদান রেখেছেন আজার।

‘এখনও পর্তুগাল দলের অংশ রোনালদো’

ক্রীড়া প্রতিবেদক ॥ বিশ্বকাপের পর থেকে দেশের হয়ে আর মাঠে নামেননি ক্রিস্তিয়ানো রোনালদো। তবে তাকে এখনও জাতীয় দলের গুরুত্বপূর্ণ সদস্য হিসেবে দেখেন পর্তুগালের কোচ ফের্নান্দো সান্তোস। ৩৩ বছর বয়সী এই তারকা সবশেষ পর্তুগাল দলে খেলেছেন রাশিয়া বিশ্বকাপের শেষ ষোলোয় উরুগুয়ের বিপক্ষে। সে ম্যাচ হেরে বিশ্বকাপ থেকে ছিটকে যায় বর্তমান ইউরো চ্যাম্পিয়নরা। ইউভেন্তুসের এই ফরোয়ার্ডকে ছাড়া এরই মধ্যে উয়েফা নেশন্স লিগের সেমি-ফাইনাল নিশ্চিত করেছে পর্তুগাল। শনিবার সান সিরোতে ‘এ’ লিগে গ্র“প-৩ এর ম্যাচে ইতালির সঙ্গে গোলশূন্য ড্র করে প্রথম দল হিসেবে আগামী জুনে হতে যাওয়া শিরোপা লড়াইয়ে পা রাখে সান্তোসের দল। ম্যাচের পর সংবাদ সম্মেলনে দলে রোনালদোর গুরুত্ব তুলে ধরেন সান্তোস। “এ বিষয়ে কোনো সন্দেহ নেই। আপনাদের মনে এখনও সন্দেহ আছে কি-না আমি জানি না। কিন্তু ক্রিস্তিয়ানো এই দলের অংশ।” আন্তর্জাতিক ফুটবলে পর্তুগালের সর্বকালের সেরা গোলদাতা রোনালদো এ পর্যন্ত করেছেন ৮৫টি গোল। দেশের হয়ে সবচেয়ে বেশি ১৫৪ ম্যাচ খেলার রেকর্ডও তার। আন্তর্জাতিক ফুটবলে পাঁচ বারের বর্ষসেরা এই ফুটবলারের চেয়ে বেশি গোল আছে শুধু ইরানের আলি দাইয়ের (১০৯)।

বিয়ে করেছেন বিবার-হেইলি

বিনোদন বাজার ॥ বেশ কিছুদিন ধরেই বাতাসে গুঞ্জন ছিল। এমনকি বিবাহ রেজিস্ট্রি অফিস থেকেও দুজনকে বের হতে দেখা গেছে। তবে কেউই মুখ খুলছিলেন না। শেষ পর্যন্ত গুঞ্জনটা সত্যি হলো। নিজ ইনস্টাগ্রাম থেকেই বিয়ের খবর নিশ্চিত করলেন। তিনি হলেন- কানাডার জনপ্রিয় পপ তারকা জাস্টিন বিবার। দীর্ঘদিন ধরে সম্পর্ক ছিল আরেক গায়ক সেলেনা গোমেজের সঙ্গে। তবে বিয়ে করেছেন অন্য এক তরুণীকে। যার সঙ্গে পরিচয় হয় এ বছরই। পরিচয়ের পর প্রেম নিবেদন, তারপরই বিয়ে! কনের নাম হেইলি ব্যাল্ডউইন। ২৪ বছর বয়সী এই পপ তারকার স্ত্রী হেইলির বয়স এখন ২১ বছর। যিনি যুক্তরাষ্ট্রের একজন জনপ্রিয় মডেল। তাই বিশ্বের সেরা গ্ল্যামারাস জুটির মধ্যে নিশ্চয়ই বিবার-জুটি একটি হবে। ইনস্টাগ্রামে হেইলির ছবি পোস্ট করে বিবার তাকে স্ত্রী হিসেবে সম্বোধন করেন। ছবিতে দেখা যায় দুজনই বেশ হাস্যোজ্জ্বল। আর পেছন থেকে বিবারের হাত ধরে রেখেছেন হেইলি। ক্যাপশনে বিবার লিখেছেন, আমার স্ত্রী দারুণ। গত সেপ্টেম্বরে নিউইয়র্কের একটি বিবাহ রেজিস্ট্রি অফিস থেকে দুজনকে একসঙ্গে বের হতে দেখা যায়। তখন হেইলি অবশ্য গুঞ্জনটা উড়িয়ে দেন। টুইটারে তিনি লিখেন, ‘আমি বুঝতে পারছি গুঞ্জনটা কোথা থেকে আসছে। তবে এখনো আমি বিবাহিত নই।’ পরবর্তীতে অবশ্য সেই টুইটটি তিনি মুছে ফেলেন। গত ৭ জুলাই বাহামাসের এক রেস্তোরাঁয় নৈশভোজের সময় হেইলি ব্যাল্ডউইনকে প্রেমের প্রস্তাব দেন জাস্টিন বিবার। সেই প্রেম চার মাসের ব্যবধানেই পরিণয়ে রূপ নিয়েছে। এর মাধ্যমে বাতাসে ভেসে থাকা গুঞ্জনও সত্যি প্রমাণিত হলো। হেইলি যে বিয়েতে বেশ উচ্ছ্বসিত সেটাও প্রমাণিত হয় তার কথায়। এক সাক্ষাৎকারে বলেন, ‘আমার বোন ২৪ বছর বয়সে বিয়ে করেছে। আমাদের বাবা-মাও কম বয়সে বিয়ে করেছেন। তাই আমিও অপেক্ষার প্রয়োজন দেখি না। বাবা-মাও বাধা দেননি। সিদ্ধান্ত ভুল হলে নিশ্চয়ই তারা বাধা দিতেন।

১৭ বছর পর শ্রীলংকার মাটিতে টেস্ট সিরিজ জিতল ইংল্যান্ড

ক্রীড়া প্রতিবেদক ॥ দীর্ঘ ১৭ বছর পর শ্রীলংকার মাটিতে সিরিজ জয়ের স্বাদ পেলো ইংল্যান্ড। শ্রীলংকার বিপক্ষে গতকাল দ্বিতীয় টেস্ট ৫৭ রানের ব্যবধানে জিতে এক ম্যাচ বাকী রেখেই তিন ম্যাচের সিরিজ জয় নিশ্চিত করলো ইংলিশরা। সেই সাথে বিদেশের মাটিতে ২০১৫ সালের পর আবারো সিরিজ জয়ের স্বাদও পেল দলটি। শ্রীলংকার বিপক্ষে ক্যান্ডি টেস্ট জয়ের জন্য শেষ দিনে ৩ উইকেট প্রয়োজন ছিলো ইংল্যান্ডের। পক্ষান্তরে ম্যাচ জিততে শ্রীলংকার দরকার ছিলো ৭৫ রান। ইংল্যান্ডের ছুঁড়ে দেয়া ৩০১ রানের লক্ষ্যে চতুর্থ দিন শেষে ৭ উইকেটে ২২৬ রান করেছিলো শ্রীলংকা। উইকেটরক্ষক নিরোশান ডিকবেলা ২৭ রান নিয়ে পঞ্চম ও শেষদিনের খেলা শুরু করেছিলেন। লোয়ার-অর্ডার ব্যাটসম্যানদের নিয়ে দলের জয় নিশ্চিত করার দায়িত্বটা ডিকবেলার উপরই ছিলো। কিন্তু দিনের ২৯তম বলে ও প্রথম খেলোয়াড় হিসেবে উইকেট পতনের তালিকায় নাম তুলতে হয় ডিকবেলাকে। ইংল্যান্ডের অফ-স্পিনার মঈন আলীর বলে বেন স্টোকসের হাতে ক্যাচ দিয়ে আউট হন ডিকবেলা। ৩টি চারে ৪৩ বলে ৩৫ রান করেন তিনি। ডিকবেলা ফেরার পর মাত্র ২৩ বল টিকতে পারলে ২৪৩ রানেই গুটিয়ে লংকান ইনিংস। ফলে ম্যাচ ও সিরিজ হারের লজ্জা পেতে হয় লংকানদের। ইংল্যান্ডের বাঁ-হাতি স্পিনার জ্যাক লিচ ৮৩ রানে ৫টি ও মঈন আলী ৭২ রানে ৪টি উইকেট নেন। ক্যারিয়ারের তৃতীয় ম্যাচেই প্রথমবারের মত পাঁচ বা ততোধিক উইকেট পেলেন লিচ। ম্যাচের সেরা হয়েছেন ইংল্যান্ডের অধিনায়ক সেঞ্চুরিয়ান জো রুট। আগামী ২৩ নভেম্বর কলম্বোতে শুরু হবে সিরিজের তৃতীয় ও শেষ টেস্ট। গল-এ সিরিজের প্রথম টেস্ট ২১১ রানের ব্যবধানে জিতেছিলো ইংল্যান্ড। শ্রীলংকার বিপক্ষে সিরিজ জয়ের পর রুটের ক্ষুধা যেন আরো গেছে ইংল্যান্ড অধিনায়ক রুটের। আরও বড় সাফল্য অর্জন করতে চান তিনি, ‘দুর্দান্ত একটি টেস্ট ম্যাচ হলো। আমরা এখানে ভালো ক্রিকেট খেলতে এসেছিলাম। আমাদের আরও উন্নতি করতে হবে। গেল ১৮ মাস ধরে দলটি বেড়ে উঠেছে কিন্তু আমরা এখানেই থেমে যেতে চাই না। আমরা বিশ্বের এক নম্বর দল হতে চাই এবং তাই বিশ্বের যেকোন কন্ডিশনে আমরা ভালো পারফরমেন্স করতে চাই।’

সিরিজে হেরে ইংল্যান্ডের প্রশংসাই করলেন শ্রীলংকার কোচ চন্ডিকা হাথুরুসিংহে। তিনি বলেন, ‘এ বছর আমরা প্রথম টেস্ট সিরিজ হারলাম। দক্ষিণ আফ্রিকার বিপক্ষে ২-০ ব্যবধানে সিরিজ জিতেছি। ইংল্যান্ডের বিপক্ষে দু’টি ম্যাচই প্রতিদ্বন্দ্বিতামূলক ছিলো। দু’টি ম্যাচেই আমাদের জয়ের ভালো সুযোগ ছিলো। তবে আমাদের চাইতে ইংল্যান্ড বেশি ভালো ক্রিকেট খেলেছে। আমরা এমন ফলকে সাদরে গ্রহণ করেছি। ম্যাচের ভুলগুলো থেকে আমাদের শিখতে হবে।’ সংক্ষিপ্ত স্কোর : ইংল্যান্ড : ২৯০ ও ৩৪৬, ৮০.৪ ওভার (রুট ১২৪, ফোকস ৬৫*, ধনঞ্জয়া ৬/১১৫)। শ্রীলংকা : ৩৩৬ ও ২৪৩, ৭৪ ওভার (ম্যাথুজ ৮৮, করুনারতেœ ৫৭, লিচ ৫/৮৩)। ফল : ইংল্যান্ড ৫৭ রানে জয়ী। সিরিজ : তিন ম্যাচের সিরিজে ২-০ ব্যবধানে এগিয়ে ইংল্যান্ড। ম্যাচ সেরা : জো রুট (ইংল্যান্ড)।

 

কুষ্টিয়া মহাশশ্মান মন্দিরে কার্ত্তিক পূজা অনুষ্ঠিত

নিজ সংবাদ ॥ কুষ্টিয়া মহাশশ্মান মন্দিরে শ্রীশ্রী কার্ত্তিক পূজা অনুষ্ঠিত হয়েছে। কুষ্টিয়া মহাশশ্মান মন্দির কমিটির আয়োজনে শনিবার সন্ধ্যা ৭ টায় এ পূজা অনুষ্ঠিত হয়। পূজা শেষে ভক্তদের মধ্যে প্রসাদ বিতরণ করা হয়। এ সময় কুষ্টিয়া মহাশশ্মান মন্দির কমিটির নেতৃবৃন্দের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন বিজয় কুমার কেজরীওয়াল, নিলয় কুমার সরকার, স্বপন কুমার ঘোষ, বীর মুক্তিযোদ্ধা রবীন্দ্রনাথ সেন, স্বপন কুমার দে প্রমুখ।

গাংনীতে বিএনপির মনোনয়ন প্রত্যাশী শিল্পপতি গোলাম মোর্তজা

জীবনের সকল অর্জন দিয়ে দেশের উন্নয়নে কাজ করতে চাই

গাংনী অফিস ॥ ছাত্রজীবন থেকে সামাজিক কর্মকান্ডের পাশাপাশি বাংলাদেশ জাতীয়তাবাদী ছাত্রদলের বিভিন্ন পদপদবীতে থেকে কাজ করে দলকে সুসংগঠিত করতে ভুমিকা রেখেছেন। সারা জীবন জনগনের সেবার মাধ্যমে নিজেকে সকলের মাঝে তুলে ধরতে চাই বলে মন্তব্য করেছেন গাংনী উপজেলা বিএনপির সহ সভাপতি শিল্পপতি মো: গোলাম মোর্তজা (মর্ত)। সম্প্রতি জাতীয়তাবাদী দল বিএনপির মনোনয়নপত্র তুলে জমা দেওয়ার প্রাক্কালে সাংবাদিকদের সাথে মতবিনিময়কালে তিনি এ কথা বলেন। তিনি আরো বলেন, ১৯৯০ সালে কুষ্টিয়া সরকারী কলেজে ছাত্রদলের ক্রীড়া সম্পাদক, ১৯৯৩ সালে নারায়নগঞ্জ তোলারাম সরকারী কলেজের সহকারী লাইব্রেরিয়ান, ১৯৯৮ সালে রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের এস এম হল শাখা ছাত্রদলের ছাত্র বিষয়ক সহ সম্পাদদের দায়িত্ব পালন করেন। বর্তমানে শিল্প কলকারখানা তৈরি করে সাধারন মানুষের কর্মসংস্থানের সৃষ্টি করেন। এছাড়া এলাকায় ধর্মীয়সহ নানা সামাজিক সংগঠনের সাথে কাজ করে চলেছি। এলাকার উন্নয়নে সহযোগীতা অব্যাহত রয়েছে। সকল শ্রেনী পেশার মানুষকে সাথে নিয়ে আগামীদিনে গাংনীর উন্নয়নে নিজেকে নিয়োজিত রাখবেন বলে উল্লেখ করেন। বিএনপি থেকে মনোনয়ন প্রত্যাশা করছি। দল যদি মনোনয়ন দেয় তাহলে নির্বাচনে অংশ নেব আর দল যদি মনোনয়ন না দেয় তাহলে যিনি মনোনয়ন পাবেন তাকে বিজয়ী করার লক্ষে মাঠে ময়দানে থেকে কাজ করে যাবেন। তিনি আরো বলেন, আমার প্রয়াত পিতা জিল্লুর রহমান তৎকালিন পাকিস্থান আমলে স্থানীয় সরকারের ১৯৫৫ থেকে ১৯৭৩ সাল পর্যন্ত একটানা নির্বাচিত প্রতিনিধি হিসেবে সুনামের সহিত দায়িত্ব পালন করেছেন। এসময় তিনি ধর্মীয় সামাজিক সহ বিভিন্ন উন্নয়ন কর্মকান্ড পরিচালনা করেছেন। এছাড়া  স্বাধীনতা পরবর্তীতে ১৯৭৩ সালে ভাইস চেয়ারম্যান পদে অংশ গ্রহন করেন। মনোনয়নপত্র উত্তোলনকালে মেহেরপুর জেলা ছাত্রদলের সাবেক সাধারন সম্পাদক আব্দাল হক, গাংনী উপজেলা ছাত্রদলের সভাপতি আব্দুল হান্নান, সাবেক ছাত্রদল নেতা কামরুল ইসলাম, ছাত্রদল নেতা জাহিদ হোসেন, আলভী সহ নেতা কর্মীরা উপস্থিত ছিলেন।

গাংনীর বালিয়াঘাট গ্রামে গরীব-দুস্থ্যদের মাঝে কম্বল বিতরণ

গাংনী প্রতিনিধি ॥ মেহেরপুরের গাংনী উপজেলার বামন্দী ইউনিয়ন পরিষদের সদস্য আসাদুল হক বিশ্বাসের উদ্যোগে দুস্থ ও অসহায় শীতার্থ মানুষের মাঝে ২শ’টি কম্বল বিতরণ করা হয়েছে। গতকাল শনিবার বিকেলে বামন্দী ইউনিয়নের বালিয়াঘাট গ্রামে আনুষ্ঠানিকভাবে কম্বল বিতরণ করা হয়। প্রধান অতিথি হিসাবে উপস্থিত থেকে কম্বল বিতরণ করেন ইউপি সদস্য ও সাবেক ফুটবলার আসাদুল হক বিশ্বাস। এ সময় এলাকার গণ্যমান্য ব্যক্তিবর্গ উপস্থিত ছিলেন।

গাংনীর কেএবি মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের ছাত্রীদের মাঝে ন্যাপকিন বিতরণ

গাংনী প্রতিনিধি ॥ মেহেরপুরের গাংনী উপজেলার রাইপুর ইউনিয়নের কেএবি (কড়–ইগাছি-এলাঙ্গী-বাথানপাড়া) মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের ছাত্রীদের মাঝে স্যানিটারী ন্যাপকিন বিতরণ করা হয়েছে। ছাত্রীদের স্বাস্থ্য-সচেতনতার লক্ষ্যে এ সব ন্যাপকিন বিতরণ করা হয়। গতকাল শনিবার সকালে কেএবি মাধ্যমিক বিদ্যালয় চত্বরে আনুষ্ঠানিকভাবে ন্যাপকিন বিতরণ করা হয়। রাইপুর ইউনিয়ন পরিষদের সহযোগিতায় ন্যাপকিন বিতরণ করা হয়। প্রধান অতিথি হিসাবে ছাত্রীদের মাঝে ন্যাপকিন বিতরণ করেন- রাইপুর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান গোলাম সাকলায়েন ছেপু। অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন কেএবি মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক রাজু আহমেদ। এ সময় উপস্থিত ছিলেন বিদ্যালয়ের শিক্ষক-শিক্ষিকাসহ স্থানীয় গণমান্য ব্যক্তিবর্গ।

আলমডাঙ্গা বালিকা বিদ্যালয়ের প্রাক্তন সহকারী প্রধান শিক্ষিকার ইন্তেকাল

আলমডাঙ্গা অফিস ॥ আলমডাঙ্গা পাইলট মাধ্যমিক বালিকা বিদ্যালয়ের অবসর প্রাপ্ত সহকারী প্রধান শিক্ষিকা মালেকা খাতুন রুনু বার্ধক্যজনিত কারনে ইন্তেকাল করেছেন (ইন্না….রাজিউন)। গতকাল শনিবার সকাল ১০টার দিকে কালিদাশপুর গ্রামে নিজ বাড়িতে দীর্ঘদিন অসুস্থ্য থাকার পর তিনি মৃত্যুবরণ করেন।  মৃত্যুকালে তার বয়স হয়েছিল ৭৮ বছর। তার মৃত্যুর সংবাদ শুনে পাইলট মাধ্যমিক বালিকা বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষকসহ সকল শিক্ষকবৃন্দ ও প্রাক্তন শিক্ষার্থীরা এক নজর দেখার জন্য তার বাড়িতে ছুটে যান। আলমডাঙ্গার কালিদাশপুর গোরস্থানে বাদ আছর জানাযা শেষে দাফন করা হয়েছে। মৃত্যুকালে তিনি এক ছেলে ও আত্মীয় স্বজনসহ অসংখ্য গুণগ্রাহী রেখে গেছেন। উল্লেখ্য ১৯৭৫ সালে ১লা ফেব্র“য়ারী আলমডাঙ্গা পাইলট বালিকা বিদ্যালয়ে সহকারী শিক্ষিকা হিসেবে যোগদান করেন এবং নিষ্ঠার সাথে দীর্ঘ ৩৫ বছর চাকুরি করার পর ২১ জানুয়ারী ২০১০ সালে তিনি অবসরে যান। অবসর থাকাকালীন সময়ে তিনি বিভিন্ন পত্রপত্রিকায় লেখা-লেখিসহ সাহিত্য চর্চা করতেন।

হেলমেট বাহিনীর নেতা মির্জা ফখরুল – হাছান মাহমুদ

ঢাকা অফিস ॥ আওয়ামী লীগের প্রচার ও প্রকাশনা সম্পাদক হাছান মাহমুদ বলেছেন, নয়াপল্টনে সংঘর্ষের ঘটনা টেলিভিশনের ক্যামেরা এবং পথচারীদের হাতে থাকা মোবাইলের ভিডিও ক্যামেরায় ধরা পড়ে গেছে, মির্জা ফখরুল ইসলাম তা বুঝতে ভুল করেছিলেন। তাই ফখরুল ইসলাম তড়িঘড়ি করে সংবাদ সম্মেলন করে বললেন, আওয়ামী লীগের হেলমেট বাহিনী এই হামলা চালিয়েছে। প্রকৃতপক্ষে হেলমেট বাহিনীর নেতা হচ্ছেন মির্জা ফখরুল ইসলাম। গতকাল শনিবার ঢাকায় জাতীয় প্রেসক্লাবে ন্যাশনাল আওয়ামী পার্টির (ন্যাপ) আয়োজনে মওলানা ভাসানীর ৪২তম মৃত্যুবার্ষিকী উপলক্ষে আলোচনা সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে হাছান মাহমুদ এ মন্তব্য করেন। হাছান মাহমুদ বলেন, বিএনপির কার্যালয়ের সামনে বিনা উসকানিতে তাদের নেতা-কর্মীরা কীভাবে পুলিশকে কিল-ঘুষি মেরেছিলেন, কীভাবে পুলিশের ঘাড়িতে আগুন লাগিয়েছিলেন, কীভাবে পথচারীদের ওপর হামলা চালিয়েছিলেন, তাঁদের চেহারা টেলিভিশন ও পথচারীদের হাতে থাকা ক্যামেরায় ধরে পড়েছে। তিনি বলেন, ‘মিথ্যাচারের একটা সীমা থাকে। মির্জা ফখরুল ইসলামের মিথ্যাচার শুনে আমার লজ্জা হচ্ছে।’ বিএনপিকে অনুরোধ করে সাবেক মন্ত্রী হাছান মাহমুদ বলেন, নির্বাচন প্রক্রিয়াকে বাধাগ্রস্ত করার চেষ্টা করে কোনো লাভ হবে না। নির্বাচনে অংশগ্রহণ করার যে প্রক্রিয়া বিএনপি শুরু করেছে, তা অব্যাহত রাখার আহ্বান জানান তিনি। নির্বাচনের মাধ্যমে গণতন্ত্রের ভিতকে শক্তিশালী করার কথাও বলেন হাছান মাহমুদ। এম এ ভাসানীর সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে বঙ্গবন্ধু স্বাধীনতা পরিষদের সভাপতি মো. গনি মিয়াসহ ন্যাপ ভাসানীর বিভিন্ন পর্যায়ের নেতা এ সময় উপস্থিত ছিলেন।

কালুখালীতে সড়ক দূর্ঘটনায় আরএফএল’র এসআর নিহত

ফজলুল হক ॥ রাজবাড়ী জেলার কালুখালীতে মাইক্রোবাস-মটরসাইকেল সংঘর্ষে আরএফএল’র বিক্রয় প্রতিনিধি মটরসাইকেল আরোহী মোঃ তৌফিক (২৭) নিহত হয়। সে চুয়াডাঙ্গা জেলার একাডেমীপাড়ার জাহাঙ্গীর ইসলামের পুত্র । সে রাজবাড়ী জেলার আরএফএল’র বিক্রয় প্রতিনিধি হিসেবে কাজ করেন। পাংশা হাইওয়ে থানার সাব ইন্সপেক্টর রেজাউল ইসলাম ঘটনা নিশ্চিত করে জানান, দুপুরে রাজবাড়ী-কুষ্টিয়া হাইওয়ে রোডে বাংলাদেশ হাট মোড় সংলগ্ন একটি মাইক্রোবাস মটরসাইকেল আরোহীকে ধাক্কা দিয়ে চলে যায়। এতে ঘটনাস্থলেই মটরসাইকেল আরোহী নিহত হয়। সংবাদ পেয়ে হাইওয়ে থানা পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে লাশটি আইনানুগ ব্যবস্থার জন্য পাংশা হাইওয়ে থানায় নিয়ে আসে।  কালুখালী থানা অফিসার ইনচার্জ এসএম আবু ফরহাদ ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেন।

গাংনীর কাথুলী ইউপিতে ছাত্রীদের মাঝে ন্যাপকিন বিতরণ

গাংনী প্রতিনিধি ॥ মেহেরপুরের গাংনী উপজেলার কাথুলী ইউনিয়ন পরিষদে ছাত্রীদের মাঝে স্যানিটারী ন্যাপকিন বিতরণ করা হয়েছে। গতকাল শনিবার ইউনিয়ন পরিষদের সভাকক্ষে আনুষ্ঠানিকভাবে কুতুবপুর মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের ছাত্রীদের মাঝে ন্যাপকিন বিতরণ করা হয়। বিতরণ অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন কাথুলী ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান মিজানুর রহমান রানা। এ সময় উপস্থিত ছিলেন,পরিষদের সদস্য নবীছুদ্দিনসহ অন্যান্য সদস্য-সদস্যা, কুতুবপুর মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষকবৃন্দসহ এলাকার গণ্যমান্য ব্যক্তিবর্গ।

গাংনীর রাইপুর ইউনিয়ন পরিষদে শান্তি ও সম্প্রীতি বিষয়ক কর্মশালা

গাংনী প্রতিনিধি ॥ মেহেরপুরের গাংনী উপজেলার রাইপুর ইউনিয়ন পরিষদে শান্তি ও সামাজিক সম্প্রীতি বিষয়ক কর্মশালা অনুষ্ঠিত হয়েছে। বিভিন্ন রাজনৈতিক দলের নেতা, শিক্ষক ও সুশীল সমাজের নেতৃবৃন্দদের নিয়ে এ কর্মশালা অনুষ্ঠিত হয়। গতকাল শনিবার দিনব্যাপি রাইপুর ইউনিয়ন পরিষদের সভাকক্ষে এ কর্মশালা অনুষ্ঠিত হয়। দি হাঙ্গার প্রজেক্ট-বাংলাদেশ-এর সহযোগিতায় কর্মশালার আয়োজন করে গাংনী উপজেলা পিস প্রেসার গ্র“প (পিপিজি)। কর্মশালা পরিচালনা করেন, দি হাঙ্গার প্রজেক্ট-বাংলাদেশ-এর যশোর অঞ্চল সমন্বয়কারী খোরশেদ আলম। কর্মশালায় সভাপতিত্ব করেন রাইপুর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান গোলাম সাকলায়েন ছেপু। কর্মশালায় প্রধান আলোচক ছিলেন- বিশিষ্ট সাংস্কৃতিক ব্যক্তিত্ব ও সংগঠক সিরাজুল ইসলাম স্যার। এ সময় বক্তব্য রাখেন- রাইপুর মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক মিজানুর রহমান, চাঁদপুর মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক আবুল কাশেম, স্থানীয় আ.লীগ নেতা ফারুক হোসেন, দি হাঙ্গার প্রজেক্ট-বাংলাদেশ-এর গাংনী অঞ্চল সমন্বয়কারী হেলাল উদ্দীন। অন্যান্যদের মধ্যে বক্তব্য রাখেন, রাইপুর ইউনিয়ন পরিষদের সাবেক সদস্য আব্দুল হান্নান, ইউনিয়ন আ.লীগের সাধারণ সম্পাদক মোখলেছুর রহমান, ইউনিয়ন সুজন-এর সাধারণ সম্পাদক ও রাইপুর মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের সহকারী শিক্ষক আবু সাঈদ। এ সময় উপস্থিত ছিলেন- রাইপুর ইউনিয়ন পরিষদের সদস্য আতিয়ার রহমান আজাদ, জসিম উদ্দীন, হযরত আলী, স্থানীয় বিএনপি নেতা আবুল কাশেম, ওয়ার্কার্স পার্টির নেতা এনামুল হক ও আব্দুল হালিম, রাইপুর ইউনিয়ন সুজন-এর সভাপতি আব্দুল মালেক, দি হাঙ্গার প্রজেক্ট-বাংলাদেশ-এর ইউনিয়ন সমন্বয়কারী গোলাম আম্বিয়া, বাথানপাড়া জামে মসজিদের ঈমাম একলাছুর রহমান, রাইপুর জামে মসজিদের ঈমাম আব্দুস সালাম, রাইপুর ইউনিয়ন পরিষদের সদস্য ও আ.লীগ নেতা বকুল হোসেন, সাংবাদিক সাহাজুল সাজু, রাইপুর ইউনিয়ন পরিষদের সদস্যা যথাক্রমে ইসমতারা ও ফিরোজা খাতুন, নারীনেত্রী সাহারন নেছা ও  শরিফা খাতুন, কড়–ইগাছি গ্রাম উন্নয়ন কমিটির সদস্য সুমন হোসেন প্রমুখ।

কোনো ষড়যন্ত্রেই বিএনপি ভোট থেকে সরবে না – নোমান

ঢাকা অফিস ॥ সরকার বিএনপিকে ভোটে না রাখতে নানা ধরনের ষড়যন্ত্র করছে। তবে কোনো ষড়যন্ত্রই নির্বাচন থেকে তাদের দূরে রাখতে পারবে না বলে মন্তব্য করেছেন বিএনপির সহসভাপতি আবদুল¬াহ আল নোমান। সুষ্ঠু ভোটের কোনো লক্ষণ আপাতত তিনি দেখছেন না বলেও জানান। নির্বাচন সুষ্ঠু করার ব্যাপারে সরকার ও নির্বাচন কমিশনের আন্তরিকতা নিয়েও প্রশ্ন তোলেন। গতকাল শনিবার মওলানা ভাসানীর ৪২তম মৃতবার্ষিকী উপলক্ষ্যে টাঙ্গাইলের সন্তোষে শ্রদ্ধা জানানোর পর সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে তিনি এই কথা বলেন। নোমান বলেন, ‘মওলানা আব্দুল হামিদ খান ভাসানীর কবরের পাশে থেকে শপথ নিলাম দেশে গণতন্ত্র পুনঃপ্রতিষ্ঠা করবো। আসন্ন জাতীয় সংসদ নির্বাচন থেকে আমাদের সরিয়ে রাখতে আওয়ামী লীগ নানা রকম পরিকল্পনা করছে। কিন্তু আমরা নির্বাচন থেকে সরতে রাজি নই এবং খালেদা জিয়াকে সাথে নিয়েই নির্বাচন করতে চাই।’ বিএনপির এই নেতা বলেন, ‘আসন্ন জাতীয় সংসদ নির্বাচন জনগণের সমস্যা সমাধানের নির্বাচন। তৃণমূল মানুষের সংগ্রামের ফসল হচ্ছে ঐক্যফ্রন্ট। সবার সংগ্রামে গণতন্ত্র পুনঃপ্রতিষ্ঠা হবেই। দেশে এখনও সমতা আসেনি।’ সেই সমতা আনতে সরকার ও নির্বাচন কমিশনের কাছে আহ্বান জানান বিএনপির এই নেতা। আওয়ামীলীগ বলছে, নির্বাচন বানচাল করতে বিএনপি নাশকতা করছে, সাংবাদিকদের এমন প্রশ্নের জবাবে নোমান বলেন, ‘আওয়ামী লীগতো নতুন করে একথা বলছে না। যখনই কোন সংকট তারা নিজেরা তৈরি করে তখন তারা সেই সংকটকে জাতীয়তাবাদী দলের ওপর চাপিয়ে দেয়। নয়াপল্টনে যে সমস্যা হয়েছে তা সবাই জানে। সবাই দেখেছে। এরপরও বলতে হচ্ছে গাড়ি আমরা পোড়াইনি। আমাদের ওপর দোষ চাপিয়ে দেয়া হচ্ছে। তারা চায়, জনগণকে ভয়ভীতি দেখিয়ে এমন একটি পরিস্থিতি হোক জনগণ যাতে ভোটকেন্দ্রে না যায়।’ কেন্দ্রীয় নেতাদের সঙ্গে জেলা বিএনপির সভাপতি কৃষিবিদ সামছুল আলম তোফা ও সাধারণ সম্পাদক ফরহাদ ইকবালসহ জেলা বিএনপি ও অঙ্গ সংগঠনের নেতাকর্মীরাও ভাসানীর মাজারে শ্রদ্ধা জানান।

কুষ্টিয়ায় বাসদের ৩৮তম প্রতিষ্ঠা বার্ষিকী পালন

বাংলাদেশের সমাজতান্ত্রিক দল বাসদের ৩৮তম প্রতিষ্ঠা বার্ষিকী ও রুশ সমাজতান্ত্রিক বিপ্লবের ১০১তম বার্ষিকী পালন করেছে। গতকাল শনিবার বিকেল সাড়ে ৩টায় চৌড়হাস কাষ্টম মোড়স্থ দলীয় কার্যালয়ে সমাবেশ ও আলোচনা সভার মধ্যদিয়ে পালিত হয়েছে এই কর্মসূচী। এদিনটি পালনে পালনে লাল পতাকা মিছিলসহ সমাবেশ করার কর্মসূচী থাকলেও আইন শৃংখলা সংস্থার নিষেধাজ্ঞায় তা দলীয় কার্যালয়ে সম্পন্ন করতে হয়েছে। বাসদ কুষ্টিয়া জেলা আহ্বায়ক কমরেড শফিউর রহমান শফির সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত সমাবেশে বক্তব্য রাখেন, বাসদ নেতা আশরাফুল ইসলাম, নাজমুল ইসলাম শাহিন, মাসুদ হাসান, ছাত্র নেতা রাশিব রহমান, চারণ সাংস্কৃতিক কেন্দ্র কুষ্টিয়ার জামাল উদ্দিন খান প্রমুখ। এসময় বক্তারা বলেন, এমন এক সময়ে আমরা আমাদের দলের ৩৮তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী ও রুশ সমাজতান্ত্রিক বিপ্লবের ১০১তম বার্ষিকী পালন করতে যাচ্ছি যখন দেশের জনগণের দুয়ারে কড়া নাড়ছে একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচন। সর্বত্রই তাই জোরেসোরে চলছে নির্বাচন, ভোটাধিকার, গণতন্ত্র, উন্নয়ন নিয়ে আলোচনা। তার সাথে রয়েছে সংশয়, সন্দেহ, আশঙ্কা ও আতঙ্ক। মুক্তিযুদ্ধের চেতনাকে ভূলুণ্ঠিত করে ও ত্রিশ লক্ষ শহীদের আত্মদানের সাথে বিশ^াসঘাতকতা করে শাসকশ্রেণির দলগুলো রাষ্ট্রক্ষমতাকে ব্যবহার করে ঘুষ, দুর্নীতি, ব্যাংক- শেয়ারবাজার-জাতীয় সম্পদ-নদী-খাল-বিল-বন্দর লুট করে, মাদক ব্যবসা করে, ট্যাক্স ফাঁকি দিয়ে বিপুল পরিমাণ সম্পদ অর্জন করে। দলীয়করণের মাধ্যমে গোষ্ঠীস্বার্থ হাসিলে তৎপর থাকে। যেকারণে ক্ষমতার বাইরে থাকা সামাজিক ও অর্থনৈতিকভাবে ক্ষতিকর ও ঝুঁকিপূর্ণ বিবেচনায় যেনতেন প্রক্রিয়ায় রাষ্ট্রক্ষমতায় টিকে থাকার প্রচেষ্টায় নিয়মতান্ত্রিকভাবে ক্ষমতা হস্তান্তরের পথ রুদ্ধ করে ফেলেছে। অতীতে আরো দশটি সংসদ নির্বাচন হয়েছে। কখনো সামরিক, কখনো বেসামরিক, কখনো বেসামরিক লেবাসের সামরিক সরকারের আমলে। কখনো নির্বাচনের ফল ঘোষণার পর পাল্টে দিয়ে, কখনো আগের রাতে ব্যলট বাক্স ভরে রেখে, কখনো ভোটার ছাড়া, কখনো বা প্রার্থী ছাড়া নির্বাচন করে শাসকদের ইচ্ছার প্রতিফলন ঘটানো হয়েছে। জনগণের শাসনের অর্থে গণতন্ত্র আসেনি। দেশের সংকট নিরসনের পথ হিসেবে লুটপাটের অবক্ষয়িত পুঁজিবাদকে উৎখাত করে সমাজতন্ত্র প্রতিষ্ঠার লক্ষ্য নিয়ে ১৯৮০ সালের ৭ নভেম্বর বাংলাদেশের সমাজতান্ত্রিক দল বাসদ’র আত্মপ্রকাশ ঘটে। প্রতিষ্ঠার পর থেকে ভেতরে বাইরে অসংখ্য আক্রমণ মোকাবেলা করে সর্বস্তরের জনগণের সর্বমুখী সহযোগিতা-সহায়তায় জনজীবনের সংকট মোচনের দাবি-দাওয়া নিয়ে প্রতিটি গণতান্ত্রিক আন্দোলনে সাধ্যমত অংশ নিয়েছি। শোষক এক বুর্জোয়ার বিপরীতে আরেক বুর্জোয়া নয়, অধঃপতিত বুর্জোয়া রাজনীতির বিপরীতে বাম বিকল্প রাজনৈতিক স্রোতধারা সৃষ্টির মাধ্যমে ব্যবস্থা বদলের সংগ্রামে বাসদ-কে শক্তিশালী করুন এবং আওয়াজ তুলুন। সংবাদ বিজ্ঞপ্তি

বগুড়ায় আওয়ামীলীগ নেতাকে গলাকেটে হত্যা

ঢাকা অফিস ॥ বগুড়ায় নজরুল ইসলাম (৫৫) নামে এক আওয়ামীলীগ নেতার গলাকাটা লাশ উদ্ধার করেছে পুলিশ। পুলিশ জানায়, তিনি বগুড়ার আদমদীঘির  চাঁপাপুর ইউনিয়ন আওয়ামীগের প্রচার সম্পাদক ও এই এলাকার মন্দিরপুকুর  গ্রামের মৃত সখিন আলীর ছেলে। গতকাল শনিবার বেলা ১১টার দিকে  কাঞ্চনপুর গ্রামের একটি ধানক্ষেত থেকে লাশ উদ্ধার করা হয়েছে। জানা যায়, নিহত নজরুল ইসলাম গত শুক্রবার সন্ধ্যায় তার ছেলেকে সাথে নিয়ে চাপাপুর বাজারে যান এবং কেনাকাটা শেষে ছেলেকে পাঠিয়ে দেন। রাতে তিনি আর ফেরেন নি। গতকাল শনিবার বেলা ১১ টার দিকে  কাঞ্চনপুর গ্রামের জমিতে গলা কাটা লাশ পড়ে থাকতে দেখে স্থানীয় লোকজন পুলিশে খবর দেয়। পুলিশ লাশ উদ্ধার করে ময়না তদন্তের জন্য বগুড়া শহীদ জিয়াউর রহমান মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের মর্গে প্রেরণ করে। আদমদিঘী ইউনিয়ন আওয়ামীলীগের সাধারন সম্পাদক রফিকুল ইসলাম বলেন, নজরুল ইসলাম চাপাপুর ইউনিয়ন আ’লীগের প্রচার  সম্পাদক। আদমদীঘি থানার ওসি মনিরুল ইসলাম বলেন, হত্যাকান্ডের কোন কারন এখনও নিশ্চিত ভাবে বলা যাচ্ছে না।তিনি বলেন, টাকা পঁয়সা লেন দেন বা মাদকের কোন কারণ থাকতে পারে। সব কিছু মিলেই তদন্ত চলছে। গতকাল  সন্ধ্যা পর্যন্ত কোন মামলা হয়নি।

খালেদা জিয়াকে জেল দেওয়া বিচারকের বিরুদ্ধে মামলা করবো – কাদের সিদ্দিকী

ঢাকা অফিস ॥ কৃষক শ্রমিক জনতা লীগের সভাপতি বঙ্গবীর কাদের সিদ্দিকী বীরোত্তম বলেছেন, আমি নির্বাচনই করতে চাই না। সারাদেশ ঘুরে শেখ হাসিনাকে দেখাতে চাই তিনি নৌকা নিয়ে কতদূর যেতে পারেন। তিনি একাই বঙ্গবন্ধুর কন্যা নন আমিও বঙ্গবন্ধুর রাজনৈতিক পুত্র। আমার গায়ে বঙ্গবন্ধুর রক্ত না থাকলেও বঙ্গবন্ধুর আদর্শ রয়েছে। ভোট ডাকাতি দিবস পালন উপলক্ষে গতকাল শনিবার বিকেলে সখীপুরে তার বাসভবনে আয়োজিত প্রতিবাদ সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এ কথা বলেন। এ সময় তিনি বলেন, বাংলাদেশে এত বড় কারাগার নেই যেখানে খালেদা জিয়াকে আটকে রাখা যায়। যে টাকা তছরূপ হয়নি সেই ২ কোটি টাকার জন্য বিচারক খালেদা জিয়াকে শাস্তি দিয়েছেন। আমরা ওই বিচারকের বিরুদ্ধে মামলা করবো। বিএনপি নেতা-কর্মীদের উদ্দেশ্য করে বলেন, আজকের ‘ধানের শীষ’ প্রতীক আপনাদের না! ধানের শীষ এখন জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের। আমরা যখন চলে যাবো সেদিন আপনাদের প্রতীক হবে। আগামী নির্বাচন অবরুদ্ধ গণতন্ত্র পুনরুদ্ধার ও খালেদা জিয়াকে মুক্ত করবার নির্বাচন। তিনি আরও বলেন, অনেক কথা শুনেছি। শেষ পর্যন্ত রাজাকারের খেতাব পেয়েছি। তাই গত ছয় বছরে আমি শহীদ মিনার, স্মৃতিসৌধ ও গণভবনে যাইনি। ৭৫’র প্রতিরোধ যোদ্ধাদের মিলনমেলার বিষয়ে কথা বলতে গণভবনে যাওয়ার জন্য ৯বার ফোন করে ব্যর্থ হয়েছি। পরে চিঠিও লিখেছি কিন্তু জবাব পাইনি। আগামী ৩০ ডিসেম্বরের পর ওনাকেই (শেখ হাসিনা) আমাকে চিঠি লিখতে হবে। সভায় স্থানীয় কৃষক শ্রমিক জনতা লীগের সভাপতি আতোয়ার রহমানের সভাপতিত্বে জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের নেতা ও ডাকসুর সাবেক ভিপি সুলতান মুহাম্মদ মনসুর, কৃষক শ্রমিক জনতা লীগের সাধারণ সম্পাদক হাবীবুর রহমান তালুকদার বীরপ্রতিক, জেলা সভাপতি এ্যাড. রফিকুল ইসলাম, সহসভাপতি আব্দুল হালিম সরকার, মীর জুলফিকার শামীম বক্তব্য দেন। সভায় স্থানীয় বিএনপি নেতা ও দলের মনোনয়ন প্রত্যাশী শেখ মোহাম্মদ হাবীব, বাসাইল উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান শহীদুল ইসলাম, শরীফ হোসেন পাপ্পুও বক্তব্য দেন।