কুষ্টিয়ায় আল্লামা শফী’র গায়েবী জানাযা, দোয়া মাহফিল

আমলা অফিস ॥ হেফাজতে ইসলামের আমির আল্লামা শাহ আহমদ শফী এর জন্য গায়েবী জানাযা ও দোয়া মাহফিল করেছে কুষ্টিয়ার মোফস্সির পরিষদ। গতকাল শনিবার (১৯ সেপ্টেম্বর) সকাল ১১টায় কুষ্টিয়া  মোফস্সির পরিষদের উদ্যোগে কুষ্টিয়ার দৌলতপুর উপজেলার লালনগর ঈদগাহ ময়দানে এ গায়েবী জানাযা অনুষ্ঠিত হয়। এসময় অন্যান্যদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন কুষ্টিয়া মোফস্সির পরিষদের সভাপতি আলহাজ্ব মুফতি আব্দুল হান্নান, সিনিয়র সহ-সভাপতি মুফতি আলী হুসাইন ফারুকী, সাধারন সম্পাদক মাওলানা ফারুক আজম জিহাদী, সদস্য আবু নাঈম, দৌলতপুর উপজেলা পরিষদের সাবেক চেয়ারম্যান ফিরোজ আল মামুন প্রমুখ। গায়েবী জানাযায় ইমামতি করে হক্কানী দরবারের পরিচালক মওলানা খালিদ হোসাইন সিপাহী। এসময় জেলার বিভিন্ন এলাকা থেকে আগত মুসল্লীসহ স্থানীয় গণ্যমান্য ব্যক্তিবর্গরা গায়েবী জানাযায় অংশগ্রহণ করেন। পরে হেফাজতে ইসলামের আমির আল্লামা শাহ আহমদ শফী এর জন্য বিশেষ দোয়া ও মোনাজাত করা হয়। এদিকে কুষ্টিয়া মোফস্সির পরিষদের উদ্যোগে মিরপুর উপজেলার আমলা ইউনিয়নের মহদীপুর জামে মসজিদে শনিবার সকালে এক দোয়া ও  মোনাজাত অনুষ্ঠিত হয়।

দৌলতপুরে পিয়াজের কেজি শতকের নীচে নামলেও এখনও রয়েছে ভোক্তাদের ক্রয়সীমার বাইরে

শরীফুল ইসলাম ॥ পিয়াজের ঝাঁঝ ও মরিচের ঝাল এ দুটোই এখন সাধারণ ক্রেতা বা ভোক্তাদের দূর্লভ খাদ্যপন্যে পরিণত হয়েছে। খিচুড়ি রান্না শিখতে বিদেশে যাওয়া নিয়ে যখন দেশে জগাখিচুড়ি চলছে সেই খিচুড়ি রান্নাতেও অপরিহার্য মসলা হিসেবে পিঁয়াজ ও মরিচের বিশেষ প্রয়োজন। যা এখন সাধারণ ভোক্তা বা ক্রেতাদের ক্রয়সীমার নাগালের বাইরে। কুষ্টিয়ার দৌলতপুরের আড়ৎদার ও ব্যবসায়ীদের দাবি বেশী দামে ক্রয় করে সীমিত লাভে খুচরা ব্যবসায়ীদের কাছে তারা পিয়াঁজ বিক্রয় করছেন। তাই পিয়াঁজের দাম বৃদ্ধিতে তাদের কোন হাত নেই। এদিকে খুচরা বাজারে পিঁয়াজ ক্রয় করতে গিয়ে সাধারণ ভোক্তাদের নাভিশ^াস অবস্থার সৃষ্টি হচ্ছে। হঠাৎ করে মসলা জাতীয় সবজি পিয়াঁজের দাম বৃদ্ধিতে সারা দেশের ন্যায় দৌলতপুরেও একই অবস্থার সৃষ্টি হয়েছে। দ্বিগুনেরও বেশী দামে পিয়াঁজ ক্রয় করতে ভোক্তাদের হিমসিম খেতে হচ্ছে। তবে খুচরা ব্যবসায়ীদের দাবি বেশী দামে পিয়াঁজ ক্রয় করে সীমিত লাভে বিক্রয় করছেন তারা। খুচরা বাজারে দেশী পিয়াঁজ বিক্রয় হচ্ছে ৮০-৮৫ টাকা দরে আর ভারতীয় এলসি’র পিয়াঁজ বিক্রয় হচ্ছে ৬০-৬৫ টাকা দরে। যা দ্বিগুনেরও বেশী দাম বলে জানিয়েছে সাধারণ ক্রেতারা। দৌলতপুরের সর্ববৃহৎ পিয়াঁজের পাইকার বাজার তারাগুনিয়া। গতকাল শনিবার সকালে সেখানে আসমত আলী নামে এক খুচরা ব্যবসায়ী পিয়াঁজ ক্রয় করতে গিয়ে জানান, কেজি প্রতি ২-১ টাকা লাভে তারা সাধারণ ক্রেতাদের কাছে পিয়াঁজ বিক্রয় করে থাকেন। যা লাভ করার তা পাইকার ও আড়ৎদাররা করে থাকেন। তবে জনি ইসলাম ও বুলবুল হোসেন নামে পাইকার ব্যবসায়ীর অভিযোগ করেন, আড়ৎদার বা পিয়াঁজ আমদানীকারকদের সিন্ডিকেটের কারনে পিঁয়াজের দাম বৃদ্ধি হয়েছে। এদিকে সিন্ডিকেটের কথা অস্বীকার করে পিঁয়াজ আমদানীকারক আফতাবুল ইসলাম জানিয়েছেন, বেশী দামে পিঁয়াজ ক্রয় করতে হচ্ছে তাই তাদেরও কেজি প্রতি ১-২ টাকা লাভে পাইকার ও ব্যবসায়ীদের কাছে বিক্রয় করতে হচ্ছে। এখানে তাদের কোন হাত বা সিন্ডিকেট নেই। বাজার নিয়ন্ত্রনে কঠোর নজরদারির পাশাপাশি অতিমুনাফালোভী সিন্ডিকেট ব্যবসায়ীদের মজুদদারী বন্ধে প্রয়োজন সরকারী হস্তক্ষেপ। এমনটাই দাবি সাধারণ ভোক্তা ও ক্রেতাদের।

সবচেয়ে কঠিন সময় পার করছি – ফখরুল

ঢাকা অফিস ॥ বর্তমান সময়কে সবচেয়ে কঠিন সময় উল্লেখ করে বিএনপির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর বলেছেন, আজকে আমরা যে অবস্থায় পড়েছি এটা নিঃসন্দেহে সবচেয়ে কঠিন সময়। এখানে ভয়ভীতি-ত্রাসের মাধ্যমে এমন একটা অবস্থার তৈরি করা হয়েছে। এর থেকে মুক্তির একটাই উপায় বদলে যাওয়া। বদলে যাওয়ার একটাই পথ, আন্দোলন সংগ্রামের মধ্যে দিয়ে সরকারকে সরাতে হবে। গতকাল শনিবার দুপুরে ঢাকা সাংবাদিক ইউনিয়ন একাংশের আয়োজিত এক ভার্চুয়াল আলোচনা সভায় তিনি এসব কথা বলেন। মির্জা ফখরুল বলেন, আজকে বিনা বিচারে হত্যা, গুম করে দেওয়া, এগুলোর মধ্য দিয়ে ভয়ের সৃষ্টি করা হয়েছে। আমার মনে হয় বর্তমানে যত সাংবাদিক বেকার আছেন, এর আগে আর কখনও এমন ছিল না। ১৯৭৫ সালের বাকশাল কায়েমের পরে যে অবস্থা তৈরি হয়েছিল, পরোক্ষভাবে সেরকমই একটা অবস্থা হয়েছে। বদলে যাওয়া ছাড়া কোনো উপায় নেই জানিয়ে বিএনপি মহাসচিব বলেন, বদলে যাওয়ার একটাই পথ, আন্দোলন সংগ্রামের মধ্যে দিয়েই সরকারকে সরাতে হবে। আমরা অনেক চেষ্টা করছি। তবে সফল হচ্ছি না। আজকে গণতন্ত্রের জন্য আমাদের নেত্রী কারাগারে। ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান দেশের বাইরে। আমাদের দলের নেতাকর্মীরা এক লাখ মামলায় ৩৫ লাখ আসামি। হাজার হাজার নেতাকর্মীকে গ্রেফতার করা হয়। হত্যা করা হয়, গুম করা হয়। মিথ্যা মামলায় জড়ানো হয়। তারপরও আমরা চেষ্টা করে যাচ্ছি। ডিজিটাল সিকিউরিটি অ্যাক্টে যেসব আইন আছে এ আইনগুলো থাকলেও যে অবস্থা না থাকলেও একই অবস্থা উল্লেখ করে মির্জা ফখরুল বলেন, মূল বিষয় হলো একদলীয় শাসন ব্যবস্থাকে স্থায়ী করার জন্যে ২০০৯ সাল থেকে বিভিন্নভাবে কাজ শুরু হয়েছে। বিশেষ করে ২০১৪ সালের বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতার নির্বাচন ও ২০১৮ সালে নির্বাচন করে আওয়ামী লীগ এখন এমন অবস্থায় চলে গেছে সে নিজেকে মনে করছে সে ছাড়া আর কেউ নেই। ফলে জাতিকে আবদ্ধ করে রাখার জন্য যা যা প্রয়োজন সেটা তারা করছে। সাংবাদিকরাই গণতন্ত্রের মূলভিত্তি উল্লেখ করে ফখরুল বলেন, মুক্ত সাংবাদিকতা না থাকলে গণতন্ত্র কখনোই বিকশিত হতে পারে না। গণতন্ত্রের মূল বিষয়টাই হলো সংবাদ মাধ্যম। সবদেশে সবকালে সাংবাদিকরা প্রধান ভূমিকা পালন করেছে। ঢাকা সাংবাদিক ইউনিয়নের একাংশের সভাপতি কাদের গণি চৌধুরীর সভাপতিত্বে ও সাধারণ সম্পাদক শহিদুল ইসলামের সঞ্চালনায় ভার্চ্যুয়াল এ সভায় আরও বক্তব্য রাখেন জামায়াতে ইসলামীর সেক্রেটারি জেনারেল মিয়া গোলাম পরওয়ার, বাংলাদেশ ফেডারেল সাংবাদিক ইউনিয়ন (বিএফইউজে) একাংশের সভাপতি রুহুল আমীন গাজী, মহাসচিব এম আব্দুল্লাহ, সাবেক মহাসচিব এম এ আজিজ, সিনিয়র সাংবাদিক আবদুল আউয়াল ঠাকুর, ডিইউজের সাবেক সাধারণ সম্পাদক বাকের হোসাইন, ডিইউজের সহ-সভাপতি নুরুল আমীন রোকন, বাছির জামাল, রাশেদুল হক, জাতীয় প্রেসক্লাবের সাবেক সভাপতি কামাল উদ্দিন সবুজ, ঢাকা রিপোর্টার্স ইউনিটির সাবেক সাধারণ সম্পাদক মুরসালিন নোমানী, ফটো জার্নালিস্ট অ্যাসোসিয়েশনের সাবেক সভাপতি এ কে এম মহসীন প্রমুখ।

দৌলতপুর সীমান্তে ফেনসিডিলসহ আটক-১

দৌলতপুর প্রতিনিধি ॥ কুষ্টিয়ার দৌলতপুর সীমান্তে বিজিবি’র পৃথক অভিযানে ৫৮ বোতল ফেনসিডিল ও ৬৫ বোতল মদ উদ্ধার হয়েছে এবং আটক হয়েছে এক মাদকসেবী ও পাচারকারী। গতকাল শনিবার পৃথক সময়ে উপজেলার বিভিন্ন সীমান্তে অভিযান চালিয়ে এসব মাদক উদ্ধারসহ একজনকে আটক করে বর্ডার গার্ড বাংলাদেশ বিজিবি। বিজিবি সূত্র জানায়, মাদক পাচারের গোপন সংবাদ পেয়ে ৪৭ বিজিবি ব্যাটালিয়ন অধিনস্থ মহিষকুন্ডি বিওপি’র টহল দল গতকাল শনিবার দুপুর ১টার দিকে মহিষকুন্ডি ক্যাম্পের পেছনে অভিযান চালিয়ে ৮ বোতল ফেনসিডিল ও মোটরসাইকেল সহ জুলকার নাঈম (২৮) নামে নামে এক মাদক সেবী ও পাচারকারীকে আটক করেছে। সে কুষ্টিয়া রেনউইক মোড় এলাকার মৃত ইছাহক আলীর ছেলে। অপরদিকে গতকাল ভোর ৫টার দিকে রামকৃষ্ণপুর বিওপি’র টহল দল মোহাম্মদপুর নদীরপাড় এলাকায় অভিযান চালিয়ে মালিক বিহীন অবস্থায় ৫১ বোতল জেডি মদ উদ্ধার করেছে। এছাড়াও শুক্রবার রাত পৌনে ৯টার দিকে মহিষকুন্ডি বিওপি’র টহল দল মহিষকুন্ডি কলেজ মাঠ এলাকায় অভিযান চালিয়ে ৫০ বোতল ফেনসিডিল ও ১৫ বোতল জেডি মদ উদ্ধার করেছে। একইদিন বিভিন্ন সময় প্রাগপুর ও মহিষকুন্ডি বিওপি’র টহল দল বিভিন্ন সীমান্তে পৃথক অভিযান চালিয়ে ১২০ বোতল ফেনসিডিল ও ৩০ বোতল বেঙ্গল টাইগার মদ উদ্ধার করেছে।

সীমান্ত হত্যা বন্ধে সর্বোচ্চ প্রাধান্য দেয়ার প্রতিশ্র“তি বিএসএফের

ঢাকা অফিস ॥ সীমান্তে হত্যাকান্ড বন্ধের বিষয়টিকে সর্বোচ্চ প্রাধান্য দেয়ার কথা জানিয়েছেন ভারতের সীমান্তরক্ষী বাহিনীর (বিএসএফ) মহাপরিচালক রাকেশ আস্তানা। ঢাকায় বর্ডার গার্ড বাংলাদেশ (বিজিবি) ও বিএসএফের মহাপরিচালক (ডিজি) পর্যায়ের সম্মেলন শেষে তিনি এ কথা জানান। গত বৃহস্পতিবার সকাল ১০টা ৪৫ মিনিটে পিলখানায় বিজিবি সদর দফতরে এ সম্মেলন শুরু হয়। এতে বিজিবির মহাপরিচালক মো. সাফিনুল ইসলামের নেতৃত্বে ১৩ সদস্যের প্রতিনিধি দল অংশ নেয়। বিএসএফের তরফ থেকে অংশ নেয় রাকেশ আস্তানার নেতৃত্বে ছয় সদস্যের প্রতিনিধি দল। সীমান্ত হত্যা ও নির্যাতন শূন্যে নামিয়ে আনতে বিজিবি-বিএসএফের সম্মতি ও যৌথ আলোচনার দলিল স্বাক্ষরের মধ্য দিয়ে শেষ হয়েছে এ সম্মেলন। গতকাল শনিবার সকালে দুই বাহিনী প্রধান যৌথ সংবাদ সম্মেলন করেন। এতে বলা হয়, সীমান্ত হত্যা শূন্যে নামিয়ে আনা, মাদকদ্রব্য, অবৈধ অস্ত্র, মানবপাচার রোধ এবং মানবাধিকারের বিষয় প্রাধান্য দেয়ার ব্যাপারে বিজিবি-বিএসএফ মহাপরিচালক পর্যায়ের বৈঠকে সম্মত হয়েছে দুই বাহিনী। সীমান্ত হত্যাকে অপ্রত্যাশিত উল্লেখ করে বিএসএফ মহাপরিচালক বলেন, সীমান্তে হত্যাকা- শূন্যে নামিয়ে আনতে আমরা দৃঢ় প্রতিজ্ঞ। এ বিষয়ে বিজিবির সঙ্গে আমাদের প্রতিনিয়ত আনুষ্ঠানিক-অনানুষ্ঠানিক যোগাযোগ অব্যাহত রয়েছে। সীমান্তে ‘নন লিথ্যাল’ (প্রাণঘাতী নয় এমন) অস্ত্র ব্যবহারে আমাদের স্পষ্ট নির্দেশনা রয়েছে। একেবারে প্রাণ সংশয়ে না পড়লে লিথ্যাল অস্ত্র ব্যবহার না করতে বলা হয়েছে। তিনি বলেন, বেশিরভাগ ক্ষেত্রে মাদক-পশু-অস্ত্র চোরাচালানসহ নানা ধরনের সন্ত্রাসী কর্মকান্ডের ক্ষেত্রে দুর্ভাগ্যবশত এ ধরনের ঘটনা ঘটছে। তবে সন্ত্রাসীদের গতিবিধির ওপর নজরদারি চালাতে আমাদের দুই দেশের সীমান্তরক্ষী বাহিনীর মধ্যে গোয়েন্দা তথ্য বিনিময়ের সিদ্ধান্ত নেয়া হয়েছে। সন্ত্রাসীদের কোনো দেশ নেই মন্তব্য করে তিনি বলেন, প্রায় ৭০ ভাগ মৃত্যুই রাতের বেলা অর্থাৎ রাত ১০টা থেকে ভোর ৫টার মধ্যে ঘটে। এ সময় সাধারণত নানা ধরনের সন্ত্রাসী কার্যক্রমই ঘটে। তখন সন্ত্রাসীরা বিএসএফ সদস্যদের চ্যালেঞ্জ করে। এ ছাড়া রাতের বেলা আবহাওয়া অনুকূলে থাকে না, সবকিছু দৃশ্যমানও থাকে না। এমন ৬০ ভাগের বেশি ঘটনায় বিএসএফ সদস্যরা আক্রান্ত হচ্ছেন এবং ৫২ জন বিএসএফ সদস্য বিভিন্ন আক্রমণে আহত হয়েছেন দাবি করে রাকেশ আস্তানা বলেন, শুধু আক্রান্ত হলেই বিএসএফ লিথ্যাল অস্ত্র ব্যবহার করে। সন্ত্রাসী কর্মকান্ডের জন্যই সীমান্ত হত্যা বেড়েছে মন্তব্য করে তিনি বলেন, আমাদের দুই দেশের মধ্যেই বন্ধুত্বপূর্ণ সম্পর্ক বিদ্যমান। আমরা সীমান্তে বিজিবি-বিএসএফ সমন্বয়ে জয়েন্ট পেট্রোলিংয়ের সিদ্ধান্ত নিয়েছি। করোনা পরিস্থিতির কারণে এটা বেশ কিছুদিন ধরে বন্ধ রয়েছে। এটা আমরা আবারও ব্যাপকভাবে শুরু করতে চাই। আমরা সীমান্তে মৃত্যু শূন্যে নামিয়ে আনতে কমিটেড (দৃঢ়প্রতিজ্ঞ)। সম্প্রতি ঠাকুরগাঁওয়ে সকালে নদীতে মাছ ধরতে গিয়ে বিএসএফের গুলিতে এক বাংলাদেশি নিহত হওয়ার বিষয়ে বিএসএফ প্রধান বলেন, দিনে কিংবা রাতে যখনই এমন ঘটনা ঘটে, প্রত্যেকটি ঘটনায়ই আমাদের অভ্যন্তরীণ তদন্ত হয়। প্রত্যেকটা ঘটনা খতিয়ে দেখা হয়। এ বিষয়টিও তদন্ত করে ভবিষ্যতের জন্য ব্যবস্থা নেয়া হবে। সীমান্ত হত্যার বিষয়ে বিজিবি মহাপরিচালক মেজর জেনারেল মো. সাফিনুল ইসলাম বলেন, বেশিরভাগ ঘটনাই রাতে ঘটে। সন্ত্রাসী কার্যক্রমের জন্য কেউ বর্ডার ক্রস করে ভারতে প্রবেশ করলে এ ধরনের ঘটনা ঘটে। এ ধরনের ঘটনা প্রতিরোধে আমরা আবারও সীমান্তে যৌথ টহল শুরু করবো। মাদক চোরাচালানের বিষয়ে বিজিবি প্রধান বলেন, মাদকের বিষয়ে আমরা উভয়পক্ষ কনসার্ন। উভয়েই তথ্য আদান-প্রদান করে মাদক চোরাচালান প্রতিরোধে কাজ করে যাচ্ছি। মাদকের চোরাচালান সংক্রান্ত এক প্রশ্নে বিএসএফ প্রধান বলেন, ভারতীয় সীমান্ত ব্যবহার করে ফেনসিডিল, ইয়াবাসহ নানা ধরনের মাদক বাংলাদেশে প্রবেশ করে। মাদকের চালান প্রতিরোধে বিএসএফসহ ভারতীয় অন্যান্য আইন প্রয়োগকারী সংস্থাও সচেষ্ট। আমাদের সম্মিলিত তৎপরতায় সীমান্তে বিপুল পরিমাণ মাদক ধরা পড়ছে। মাদকের চালান শূন্যে নামিয়ে আনতেও আমরা কমিটেড। বাংলাদেশ প্রতিনিধি দলে বিজিবির অতিরিক্ত মহাপরিচালক ও বিজিবি সদরদফতরের সংশ্লিষ্ট স্টাফ কর্মকর্তা ছাড়াও প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়, স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়, পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়, যৌথ নদী কমিশন এবং ভূমি রেকর্ড ও জরিপ অধিদফতরের সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তারা প্রতিনিধিত্ব করেন। ভারতীয় প্রতিনিধি দলে বিএসএফ সদরদফতরের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তা এবং ভারতের স্বরাষ্ট্র ও পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের কর্মকর্তারা ছিলেন।

গরীব মেধাবী ছাত্রীর পাশে জাতীয় মানবাধিকার সমিতি

টাকার অভাবে বই কিনতে পারছেনা অনার্স তৃতীয় বর্ষের এক ছাত্রী। এমন খবর জানতে  পেরে বাংলাদেশ জাতীয় মানবাধিকার সমিতি কুষ্টিয়া শহর শাখার সাধারণ সম্পাদক এমদাদুল হক মিলন ওই ছাত্রীর বই কিনে দেবার প্রতিশ্র“তি দেন।  সে অনুযায়ী তিনি গতকাল (শনিবার) বিকেলে ওই ছাত্রীর হাতে বই তুলে দেন। এসময় উপস্থিত ছিলেন, বাংলাদেশ জাতীয় মানবাধিকার সমিতি কুষ্টিয়া জেলা শাখার সাধারণ সম্পাদক শাহারিয়া ইমন রুবেল, সদর উপজেলা শাখার সভাপতি আবু মনি সাকলায়েন এলিন, শহর শাখার সভাপতি মাহফুজ জামান তিতাস ও সাধারণ সম্পাদক এমদাদুল হক মিলন। বই পেয়ে ওই ছাত্রী আবেগাপ্লুত হয়ে পড়েন। উল্লেখ্য, ওই ছাত্রীর কলেজে ভর্তির বিষয়ে বাংলাদেশ জাতীয় মানবাধিকার সমিতির অবদান রয়েছে। সংবাদ বিজ্ঞপ্তি

নড়াইলের লাহুড়িয়ায় মা ও শিশু কল্যাণ কেন্দ্রের নির্মাণ কাজ উদ্বোধন

নিজ সংবাদ ॥ অবশেষে নড়াইলের লাহুড়িয়ায় মানুষের দীর্ঘদিন দাবি পূরণ হলো। লাহুড়িয়ায় ১০ শয্যা বিশিষ্ট মা ও শিশু কল্যাণ কেন্দ্রের নির্মাণ কাজের উদ্বোধনের মধ্যদিয়ে তাদের দাবি পূরণ করা হয়েছে। গতকাল শনিবার সকালে জেলার লোহাগড়া উপজেলার লাহুড়িয়ায় এ হাসপাতালের উদ্বোধন করেন দুর্নীতি দমন কমিশনের কমিশনার (তদন্ত) এএফএম আমিনুল ইসলাম। লাহুড়িয়া ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতি বিশিষ্ট সমাজ সেবক আলহাজ্ব আব্দুস সালাম সিকদারের সভাপতিত্বে উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে জেলা প্রশাসক আনজুমান আরা, সিভিল সার্জন আব্দুল মোমেন, অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মাসুদ রানা, পরিবার পরিকল্পনা বিভাগ নড়াইলের উপ-পরিচালক শামসুল আলম, লোহাগড়া উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান আব্দুল হান্নান সিকদার রুনু, লোহাগড়া উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মুকুল কুমার মৈত্রসহ দুদকের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা  উপস্থিত ছিলেন। উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে সভাপতির বক্তব্যে আলহাজ্ব আব্দুস সালাম সিকদার বলেন, দীর্ঘদিন লাহুড়িয়ার মানুষ বিশেষ করে গর্ভবর্তী মায়েরা স্বাস্থ্য  সেবা থেকে বঞ্চিত হয়ে আসছিল। জরুরী সময়ে তাদের স্বাস্থ্য সেবা নিতে উপজেলা, জেলা সদর কিম্বা যশোর-খুলনায় গিয়ে চিকিৎসা নিতো হতো। এখন থেকে এই স্বাস্থ্য কেন্দ্র উদ্বোধনের মধ্যে দিয়ে স্থানীয় মানুষের স্বাস্থ্য সেবা কিছুটা হলেও লাঘব হবে।

তিনি আশা প্রকাশ করে বলেন, সরকার এখানে মা ও শিশুদের জন্য অভিজ্ঞ চিকিৎসক নিয়োগ দেবেন। যাতে করে গ্রামাঞ্চলের মানুষ উন্নত চিকিৎসা সেবা পায়।

স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ মন্ত্রণালয়ের স্বাস্থ্যশিক্ষা ও পরিবার কল্যাণ বিভাগের ফিজিক্যাল ফ্যাসিলিটিজ ডেভেলপমেন্ট কর্মসূচির আওতায় স্বাস্থ্য শিক্ষা প্রকৌশল অধিদপ্তরের তত্বাবধানে ৪ কোটি ৭২ লাখ টাকা ব্যয়ে ৫২ শতক জমির ওপর তিনতলা বিশিষ্ট এ ভবন  নির্মাণ কাজের ভিত্তি প্রস্তরের উদ্বোধন করা হয়। এ ভবন নির্মাণের ফলে এলাকার মানুষ উন্নত পরিবেশে স্বাস্থ্য সেবার সুযোগ পাবে মা ও শিশুরা এখানে বিশেষ সুবিধা পাবে বলে আশা করছেন স্থানীয়রা।

কালুখালীতে ছাত্রলীগের মত বিনিময় সভা অনুষ্ঠিত

ফজলুল হক ॥ রাজবাড়ীর কালুখালী উপজেলা ছাত্রলীগের মতবিনিময় সভা গতকাল শনিবার অনুষ্ঠিত হয়েছে। এ উপলক্ষ্যে বিকাল ৫টায় কালুখালী উপজেলা আওয়ামীলীগের দলীয় কার্যালয়ে উপজেলা ছাত্রলীগের সভাপতি মোঃ জাহিদুল ইসলাম সুমনের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত সভায় বক্তব্য রাখেন উপজেলা ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক আসাদুজ্জামান নূর রুকু, সাংগঠনিক সম্পাদক শফিকুল ইসলাম। বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন উপজেলা যুবলীগের আহবায়ক মনিরুজ্জামান চৌধুরী (মবি)।  এসময় রতনদিয়া ইউনিয়ন ছাত্রলীগের সভাপতি শেখ মোঃ রিপন, সাধারণ সম্পাদক রবিউল হাসান রবি, সাওরাইল ইউপি ছাত্রলীগের সভাপতি মোঃ কামাল হোসেন, সাধারণ সম্পাদক মিজানুর রহমান, বোয়ালিয়া ইউপি ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক হেদায়েতুল ইসলাম সোহাগ, মাজবাড়ী ইউপি ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক এমদাদ হোসেন, কালিকাপুর ইউপি ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক নাজির হোসেন এছাড়াও ছাত্রলীগ নেতা সাগর মন্ডল, মিলন হোসেন, দাউদ হোসেন, শিহাব উদ্দিনসহ ৭টি ইউনিয়নের ছাত্রলীগের নেতাকর্মীবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন। সভায় সভাপতি মোঃ জাহিদুল ইসলাম সুমন বলেন, কেন্দ্রীয় নির্দেশনা ও রাজবাড়ী-২ আসনের সংসদ সদস্য বীর মুক্তিযোদ্ধা মোঃ জিল্লুল হাকিম এবং তার পুত্র আশিক মাহমুদ মিতুলের দিকনির্দেশনা মোতাবেক কালুখালী উপজেলা ছাত্রলীগের নেতাকর্মীবৃন্দ কার্যক্রম পরিচালনা করবে। অতি দ্রুত সকল পর্যায়ের নতুন কমিটি গঠন করা হবে। কেউ যেন অনুপ্রবেশ করতে না পারে সেদিকে আমাদের নজর রাখতে হবে।

করোনাকালীন সময়ে যশোর সেনানিবাসের সামাজিক দূরত্ব নিশ্চিতকরণসহ জনসচেতনতামূলক  কার্যক্রম অব্যাহত

বিশ্বব্যাপী মহামারী আকারে ছড়িয়ে পড়া করোনা ভাইরাস মোকাবেলায় সরকারী নির্দেশনা  মোতাবেক দেশের প্রতিটি জেলায় নিজেদের জীবন বাজি রেখে জনস্বার্থে কাজ করে যাচ্ছে বাংলাদেশ সেনাবাহিনী। এরই ধারাবাহিকতায় জনসমাগম ঠেঁকাতে গতকাল ১৯ সেপ্টেম্বর বৃহত্তর যশোর অঞ্চলে যশোর সেনানিবাসের দায়িত্বপূর্ণ দশটি জেলায় সেনাসদস্যরা তাদের নিয়মিত টহল কার্যক্রমের পাশাপাশি সচেতনতামূলক প্রচারণায় ব্যস্ত সময় পার করতে দেখা গেছে। মার্কেট/শপিংমল, হাট-বাজার ও সকল প্রকার জনসমাগম এলাকাসমূহে সামাজিক দূরত্ব ও জনসচেতনতামূলক কার্যক্রম অব্যাহত রেখেছে যশোর সেনানিবাসের সেনাসদস্যরা। পাশাপাশি অসহায় ও দুস্থদের মাঝে ত্রাণ বিতরণ, কৃষকদের মাঝে উন্নত জাতের বীজ বিতরণ, গণপরিবহন মনিটারিং, বিনামূল্যে স্বাস্থ্যসেবা প্রদান এবং রেডজোন চিহ্নিত এলাকাসমূহে ত্রান বিতরণসহ সকল প্রকার জনসেবামূলক কার্যক্রম অব্যাহত রয়েছে। অন্যদিকে  খুলনার উপকূলীয় কয়রা এলাকায় ক্ষতিগ্রস্ত বেড়িবাঁধ মেরামতের কাজ অব্যাহত রাখার পাশাপাশি বৃহত্তর যশোর অঞ্চলের বন্যা কবলিত এলাকায় ফ্রী  চিকিৎসা সেবা প্রদান এবং বিশুদ্ধ পানি ও ঔষধ বিতরণ  কার্যক্রম অব্যাহত রয়েছে। সংবাদ বিজ্ঞপ্তি

ইউএনও ওয়াহিদা জনপ্রশাসনে, স্বামী স্বাস্থ্য বিভাগে বদলি

ঢাকা অফিস ॥ দুর্বৃত্তদের হামলায় গুরুতর আহত দিনাজপুরের ঘোড়াঘাট উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) ওয়াহিদা খানমকে জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয়ে বদলি করে বিশেষ ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওএসডি) করা হয়েছে। একই সঙ্গে তার স্বামী রংপুরের পীরগঞ্জ উপজেলার ইউএনও মো. মেজবাউল হোসেনকে স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের স্বাস্থ্য সেবা বিভাগে সিনিয়র সহকারী সচিব হিসাবে বদলি করেছে সরকার। জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয় গত বুধবার এক আদেশে তাদের ঢাকায় বদলির নির্দেশ দেয়। আদেশে বলা হয়েছে, পুনরাদেশ না দেওয়া পর্যন্ত তাদের এসব পদে পদলি করে নিয়োগ দেওয়া হলো। গত ০২ সেপ্টেম্বর দিনাজপুরে সরকারি বাসায় ঢুকে দুর্বৃত্তরা ওয়াহিদা খানম ও তার বাবার ওপর হামলা চালায়। গুরুতর আহত ওয়াহিদা খানমকে ঢাকায় ন্যাশনাল নিউরোসায়েন্স হাসপাতালে চিকিৎসা দেওয়া হচ্ছে। তার বাবাকেও পরে সেখানে ভর্তি করা হয়। হামলার ঘটনায় পুলিশ ও র‌্যাব বেশ কয়েকজনকে গ্রেফতার করেছে। জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয়ের একজন কর্মকর্তা জানিয়েছেন, স্বামী-স্ত্রীকে এক কর্মস্থলে রাখতে আপাতত এই বদলি আদেশ দিয়েছে মন্ত্রণালয়।

ইরানি কফিনে করে মার্কিনিদের লাশ পাঠানো হবে -আইআরজিসি

ঢাকা অফিস ॥ ইরানের ইসলামি বিপ্লবী গার্ড বাহিনী বা আইআরজিসি’র নৌ শাখার কমান্ডার রিয়ার অ্যাডমিরাল আলী রেজা তাংসিরি সতর্ক করে বলেছেন, শত্রুরা যদি ইরানের স্বার্থকে হুমকির মুখে ফেলে তাহলে তাদের দাঁত ভেঙে দেয়া হবে এবং ইরানি কফিনে ভরে তাদের লাশ হরমুজ প্রণালীর বাইরে পাঠানো হবে। ইরানের ইসনা বার্তা সংস্থাকে দেয়া সাক্ষাৎকারে একথা বলেছেন কমান্ডার তাংসিরি। তার ওই সাক্ষাৎকার শনিবার প্রকাশিত হয়েছে। তিনি শত্রুদেরকে পরামর্শ দেন, যেন তারা ইরানের জাতীয় স্বার্থকে হুমকির মুখে না ফেলে। তাংসিরি বলেন, “ইরানের স্বার্থ হুমকির মুখে পড়লে শত্রুর দাঁত ও হাত ভেঙে দেয়া হবে এবং এটি কোনো স্লোগান নয়, অতীতে আমরা বাস্তবে প্রমাণ করে দেখিয়েছি। এ সময় তিনি ইরানি একটি প্রবাদ উল্লেখ করেন- “পরীক্ষা করা জিনিস আবার পরীক্ষা করা ভুল। পারস্য উপসাগরে ইরান ও আমেরিকার মধ্যে সামরিক সংঘাত শুরু হলে কে এগিয়ে থাকবে- এমন এক প্রশ্নের জবাবে অ্যাডমিরাল তাংসিরি বলেন, “নিশ্চয় এই এলাকায় আমাদের মাতৃভূমি এবং এখানে ভুল জায়গায় মার্কিন সন্ত্রাসীরা উপস্থিত রয়েছে। আমরা কখনো যুদ্ধ শুরু করি নি এবং করবও না। তবে যদি তারা আমাদের জাতীয় স্বার্থে আঘাত হানে তাহলে আমরা চূড়ান্তভাবে রুখে দাঁড়াব।” অ্যাডমিরাল তাংসিরি বলেন, যুদ্ধ শুরুর প্রথম দিনেই মার্কিন সেনাদের লাশ ইরানি কফিনে ভরে হরমুজ প্রণালীর বাইরে পাঠানো হবে।

 

কুষ্টিয়ায় গৃহবধু মীম হত্যার বিচার দাবিতে মানববন্ধন

নিজ সংবাদ ॥ কুষ্টিয়ায় গৃহবধু তাসনীম মীম হত্যার প্রতিবাদ ও বিচার দাবিতে মানববন্ধন অনুষ্ঠিত হয়েছে। শনিবার বেলা সাড়ে ১০টায় শহরের মজমপুর গেট এলাকায় সম্মিলিত সামাজিক আন্দোলন কুষ্টিয়া শাখার উদ্যোগে অনুষ্ঠিত এই মানব ন্ধন কর্মসূচীতে সভপতিত্ব করেন সংগঠনের কুষ্টিয়া জেলা শাখার সভাপতি বীর মুক্তিযোদ্ধা নজরুল ইসলাম। কর্মসূচীতে মীমের পরিবারসহ বিভিন্ন সামাজিক, সাংস্কৃতিক ও রাজনৈতিক সংগঠনের নেতৃবৃন্দ সংহতি জানিয়ে বক্তব্য রাখেন। বক্তারা বলেন, এখনও যদি মীমের মতো একজন উচ্চশিক্ষিত গৃহবধুকে স্বামীর সংসারে নির্মম যৌতুক নির্যাতনে হত্যাকান্ডের শিকার হয়ে বিচারের জন্য রাজপথে দাঁড়াতে হয় তাহলে দেশ এগোচ্ছে না পিছাচ্ছে ? নারী নির্যাতনের প্রতিটা ঘটনার পরই তার বিচার চাইতে এখন রাজপথে দাঁড়িয়ে চিৎকার চেচামেচী করাটা যেন আমাদের ভবিতব্যের সাথে অঙ্গীভুত হয়ে গেছে। অবিলম্বে মীম হত্যায় জড়িতদের গ্রেফতার ও দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির নিশ্চিত করা দাবি করেন বক্তারা। নিহত মীমের বাবা কামিরহাট মাধ্যমিক বিদ্যালয়ে অফিস সহকারী মহিবুল আলামের অভিযোগ, ঘটনার দুইদিন পূর্বে মীমের স্বামী দৌলতপুর উপজেলার তারাগুনিয়া গ্রামের মৃত: জিন্না মোল্লার ছেলে এজাজ আহমেদ বাপ্পী আমার বাড়ি থেকে মীমকে শ^শুড়বাড়ি নিয়ে যাওয়ার সময় কিভাবে যাবে ওইসব নিয়ে কথা উঠে। এসময় মীমের শ^াশুড়ী কহিনুর খাতুন আমাকে মোবাইল করে বকাবকি বলে বলেন, ‘আপনার জামাইকে মটরসাইকেল দেয়ার কথা ছিলো, সেটা তো দিলেন না ? এখন ওরা বাড়ি আসবে কিভাবে’? যদিও মটর সাইকেল কেনা বাবদ পূর্বেই তাকে এক লক্ষ টাকা দেয়া হয়েছিলো বলে দাবি করেন মীমের পিতা মহিবুল। দুইদিন পরই ১ সেপ্টেম্বর বিকেলে মীমকে শ^াশুড়ী কহিনুর এবং স্বামী বাপ্পীর যোগসাজসে নির্মম নির্যাতন চালিয়ে অচেতন অবস্থায় ওড়না পেঁচিয়ে ফ্যানের সাথে ঝুলিয়ে দেয়। সেখান থেকে উদ্ধার করে হাসপাতালে নেয়া হয়; দীর্ঘ ১৪দিন ঢাকা মেডিকেলের আইসিইউতে মৃত্যুর সাথে পাঞ্জা লড়ে তার মৃত্যু হয়। ঘটনার পরের দিন দৌলতপুর থানায় লিখিত অভিযোগ দিলেও পুলিশ তা আমলে নেয়নি বলে অভিযোগ পরিবারের। এসময় মানব বন্ধনে সংহতি জানিয়ে বিভিন্ন রাজনৈতিক, সামাজিক ও সাংস্কৃতিক সংগঠনের নেতৃবৃন্দ বক্তব্য রাখেন। বক্তারা হলেন- নদী পরিব্রাজক দল কুষ্টিয়ার সভাপতি খলিলুর রহমান মজু, রবিন্দ্র মৈত্রী বিশ^বিদ্যালয়ের প্রক্টর হাসিবুর রহমান, সম্মিলিত সামাজিক আন্দোলন কেন্দ্রীয় সদস্য কারশেদ আলম, বাসদ জেলা আহ্বায়ক শফিউর রহমান শফি, ওয়ার্কার্স পার্টি জেলা সাধারণ সম্পাদক হাফিজ সরকার, সাংবাদিক ও মানবাধিকারকর্মী হাসান আলী, মানবাধিকারকর্মী তাজনিহার বেগম, কবি ও লেখক ও শিল্পী আলম আরা জুঁই, হাসান টুটুল, সঞ্চারী সাংস্কৃতিক সংঘের সভাপতি নাঈমা খাতুন হীরা, সমাজতান্ত্রিক ছাত্রফ্রন্টের সভাপতি লাবনী সুলতানা, যুবজোট নেতা মাহবুব হাসান প্রমুখ। মানববন্ধনে দাবির বিষয়ে দৌলতপুর থানার অফিসার ইনচার্জ জহুরুল আলম বলেন, মীমের পিতা বাদি হয়ে নারী ও শিশু নির্যাতন দমন বিশেষ আইনের ধারায় নির্যাতন ও হত্যাকান্ডের অভিযোগ এনে ৪জনের নামোল্লেখসহ মামলা করেছেন। পুলিশ তদন্ত করছে, এ ঘটনায় যারাই জড়িত থাক তাদের গ্রেফতার করা হবে।

কৃষকেরা খুশি মনে বাড়ি ফিরছে

কুষ্টিয়ায় হাটে পেঁয়াজের প্রচুর আমদানি, দামও বেশি

আ.ফ.ম নুরুল কাদের ॥ দেশের অন্যতম পেঁয়াজ উৎপাদনকারী জেলা কুষ্টিয়া। এখানকার হাট-বাজারে পেঁয়াজ আমদানী প্রচুর হলেও বিক্রি হচ্ছে চড়া দামে। তবে চড়া মুল্যে পেঁয়াজ বিক্রি করতে পেরে কৃষক ও ব্যবসায়ীরা খুশি মনে বাড়ি ফিরছেন। এদিকে প্রশাসনের কড়া নজরদারীর কারনে শহরের পাইকারী ও খুচরা বাজারে মুল্য এখন স্থিতিশীল রয়েছে। সারাদেশের মত কুষ্টিয়ার সর্বত্র গত এক সপ্তাহ ধরে পেঁয়াজ পাইকারী ও খুচরা মুল্যে কয়েক গুন বেড়ে যাওয়ায় সাধারন মানুষেরা দিশেহারা। পিয়াজের মুল্য বৃদ্ধিতে স্থানীয় প্রশাসনের টনক নড়ে আর তখন থেকেই বাজারে প্রশাসনের কড়া নজরদারীর কারনে পিয়াজের উচ্চ মূল্য স্থিতিশীল রয়েছে।

শুক্রবার জেলার কুমারখালী উপজেলার পান্টি পিয়াজের হাট ছিল। আশে পাশের কয়েকটি জেলার মধ্যে পান্টি স্কুল মাঠের এই হাটটিতে বছরের সব সময় প্রচুর পিয়াজের আমদানী হয়। প্রতি শুক্রবার ফজরের নামাজের পর থেকেই এই হাটে পিয়াজ বেচা কেনা শুরু হয়। বেলা ১০টার মধ্যে বেচাকেনা শেষ হয়। পান্টি পিয়াজের হাটে গতকালও প্রচুর পিয়াজের আমদানী ছিল। স্কুলের পুরো মাঠটি জুড়ে পিয়াজ কেনা বিক্রি চলছিল। এই হাটে সবচেয়ে ভাল পিয়াজের পাইকারী দাম ছিল ৩১০০/-, ৩২০০/-টাকা মন। এখানে প্রকার ভেদে পিয়াজের মন প্রতি দাম ২৬০০/- থেকে ৩২০০টাকা। এই হাটে গুটি পিয়াজ (বীজ) এর মন ৩০০০/- টাকা ছিল। শৈলকুপার ইসমাইল ব্যাপারী স্কুলের সাইকেল ষ্ট্যান্ডে পিয়াজ কিনে গুদামজাত করছেন। তিনি জানালেন-পিয়াজ ভেদে ২৮০০/- থেকে ৩০০০/- টাকায় কয়েক হাজার মন পিয়াজ কিনেছি রংপুরে নেয়ার জন্য। কুমারখালী মোহন নগর গ্রামের কৃষক আখতারুজ্জামান বলেন, বাড়িতে রাখা পিয়াজ বিক্রি করতে আসছি। ২৯০০/- টাকা মনে ১০মন পিয়াজ বিক্রি করে অনেক লাভবান হয়েছি। তিনি জানান-ভারতীয় পিয়াজ না আসলে দেশের কৃষক এবং ব্যবসায়ীরা পিয়াজ বিক্রি করে আরো লাভবান হবেন। তিনি আরো জানান-এলাকার বাড়িতে বাড়িতে প্রচুর পিয়াজের মজুদ রয়েছে। বেশি দাম পাওয়ার আশায় কৃষকেরা ঘরে পিয়াজ রেখে আস্তে আস্তে বিক্রি করছে। খেজুরবাড়িয়া গ্রামের বৃদ্ধ কৃষক তোয়াজুদ্দিন কয়েক বস্তা গুটি পিয়াজ ( বীজ) নিয়ে হাটে এসেছে ৩০০০/- টাকা মন বিক্রি করতে পেরে দারুন খুশি। পান্টি হাটে মৌসুমী মজুদদারদের বেশি মুল্যে পিয়াজ কিনতে দেখা গেছে। আবার অনেকে খাওয়ার জন্য বেশি করে পিয়াজ কিনে নিয়ে যাচ্ছে। এদিকে সদর উপজেলার কাঞ্চনপুর পিয়াজের হাটে শুক্রবার প্রচুর পিয়াজের আমদানী ছিল। এই হাটে গুটি পিয়াজের (বীজ) আমদানী বেশি। এহাটে গুটি পিয়াজ সর্বোচ্চ ৬০০০/- টাকা থেকে ৩২০০/- টাকা পর্যন্ত বিক্রি হয়েছে। ব্যবসায়ী বজলু জানান- হাটে প্রচুর পিয়াজের আমদানী। কৃষকেরা নিজ নিজ বাড়ি থেকে পিয়াজ হাটে আনছে। তাছাড়া এখানে ব্যবসায়ীদের প্রচুর পিয়াজ মজুদ আছে। স্থানীয় কয়েকজন ব্যবসায়ী জানান-এই হাটে গুটি পিয়াজের আমদানী প্রচুর। চাষীরা গুটি পিয়াজ বিক্রি করে বেশি লাভবান হচ্ছে। সামনের দিন গুলোতে পিয়াজের দাম আরো বৃদ্ধি পাবে বলে তারা আশা করছে। এই কারনে অনেকে পিয়াজ বিক্রি না করে শেষ পর্যন্ত দেখার অপেক্ষায় আছে। এদিকে কুষ্টিয়া শহরের পৌরবাজারের পিয়াজের আড়তে শুক্রবার ৭০-৭৫ টাকা পর্যন্ত পাইকারী এবং খুচরা ৮০ টাকা পর্যন্ত বিক্রি হয়েছে। তবে শহরতলী এবং গ্রামে পিয়াজের প্রতি কেজি  খূজরা মুল্য ৯০-১০০ টাকা পর্যন্ত বিক্রি হয়েছে বলে জানা গেছে।

কুষ্টিয়া কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের উপ-পরিচালক শ্যামল কুমার বিশ্বাস জানান, দেশের অন্যতম পেঁয়াজ উৎপাদনকারী জেলা কুষ্টিয়া। এখানে চাহিদার থেকে দ্বিগুনের বেশি পেঁয়াজ উৎপাদন হয়। এ অঞ্চলের পেঁয়াজের মান ভাল হওয়ায় অতিরিক্ত পেঁয়াজ ঢাকাসহ দেশের বিভিন্ন জেলায় চলে যায়। বর্তমানে কুষ্টিয়ার কৃষকের ঘরে প্রচুর পরিমাণ পেঁয়াজ মজুদ রয়েছে। এখানে পেঁয়াজের কোন সংকট নেই। এখান থেকে প্রতিদিন টন টন পেঁয়াজ বাইরের জেলায় যাচ্ছে।

কুষ্টিয়ায় র‌্যাবের অভিযানে ইয়াবা ট্যাবলেটসহ ২ জন গ্রেফতার

নিজ সংবাদ ॥ র‌্যাব-১২, সিপিসি-১, কুষ্টিয়া ক্যাম্পের একটি চৌকষ আভিযানিক দল গতকাল ১৯ সেপ্টেম্বর দুপুর আড়াইটার সময় ‘‘কুষ্টিয়ার কুমারখালী উপজেলার বিল বড়ইচারা গ্রামস্থ জনৈক হাবিল মাষ্টার পিতা মৃত বাছের শেখের বাড়ীর সামনে পাঁকা রাস্তার উপর’’ একটি মাদক অভিযান পরিচালনা করে। উক্ত অভিযানে ইয়াবা ট্যাবলেট-১৪৫ পিচ, মোবাইল ফোন-২টি, সীমকার্ড-৪টি, মোটর সাইকেল-১টি ও নগদ-১২শত টাকা সহ ২ আসামী  মোঃ আলম শেখ (৪২), পিতা-মৃত আবতাব আলী শেখ ও মোছাঃ পারভীন খাতুন (৩৫), স্বামী- মোঃ আলম শেখ, উভয় সাং-কৃষ্ণপুর, থানা-কুমারখালী, জেলা-কুষ্টিয়াদ্বয়’কে গ্রেফতার করা হয়। পরবর্তীতে উদ্ধারকৃত আলামতসহ ধৃত আসামীদ্বয়ের বিরুদ্ধে কুমারখালী থানায় একটি মাদক মামলা দায়ের করা হয়েছে এবং গ্রেফতারকৃত আসামীদেরকে কুমারখালী থানায় সোপর্দ করা হয়েছে।

দৌলতপুর সীমান্তে অস্ত্র ও গুলিসহ শীর্ষ মাদক চোরাকারবারী জনি আটক : পলাতক-৪

দৌলতপুর প্রতিনিধি ॥ কুষ্টিয়ার দৌলতপুর সীমান্তে অস্ত্র ও গুলিসহ জনি বিশ^াস (৩০) নামে শীর্ষ এক মাদক চোরাকারবারী আটক হয়েছে। বৃহস্পতিবার দিবাগত রাত পৌনে ১টার দিকে উপজেলার প্রাগপুর ইউনিয়নের সীমান্ত সংলগ্ন জামালপুর গ্রামে অভিযান চালিয়ে একটি বিদেশী পিস্তুল, একটি ম্যাগাজিন ও ৪ রাউন্ড গুলিসহ তাকে আটক করে সীমান্ত রক্ষী বিজিবি। সে একই গ্রামের মৃত জাকির বিশ^াসের ছেলে। তার বিরুদ্ধে মাদক চোরাকারবারী ও সন্ত্রাসী কর্মকান্ডসহ বিভিন্ন অপরাধের একাধিক মামলা হয়েছে। বিজিবি সূত্র জানায়, অস্ত্র ও মাদক পাচারের গোপন সংবাদ পেয়ে ৪৭ বিজিবি ব্যাটালিয়ন অধিনস্থ জামালপুর বিওপি’র টহল কমান্ডার হাবিলদার সিরাজুল ইসলামের নেতৃত্বে বিজিবি’র টহল দল জামালপুর গ্রামের আকিকুজ্জামানের বাড়িতে তল্লাশী অভিযান চালিয়ে অস্ত্র ও গুলিসহ মাদক চোরাকারবারী ও সন্ত্রাসী জনি বিশ^াসকে আটক করে। এ সময় একই এলাকার হাবুল মন্ডলের ছেলে ডাবু মন্ডল (৪০), গাফফার মন্ডলের ছেলে ভুট্টু মন্ডল (৪০), আবুল মন্ডলের ছেলে বেনজু (৩৫) ও আমিরুল মিয়ার ছেলে সুমন মিয়া (৩০) নামে ৪ জন মাদক চোরাকারবারী পালিয়ে যায়। আটক মাদক চোরাকারবারী জনি বিশ^াস সীমান্ত এলাকার শীর্ষ মাদক ও অস্ত্র চোরাকারবারী বলে বিজিবি সূত্র জানিয়েছে। শুক্রবার দুপুরে আটক মাদক চোরাকারবারী ও পলাতক ৪জনসহ ৫জনের বিরুদ্ধে অস্ত্র আইনে মামলা দিয়ে দৌলতপুর থানায় সোপর্দ করেছে বিজিবি।

আহমদ শফীর জানাজায় লাখো মানুষের ঢল, দাফন সম্পন্ন

ঢাকা অফিস ॥ লাখো মানুষের সমাগমে হেফাজতে ইসলামের আমির আল্লামা শাহ আহমদ শফীর জানাজা সম্পন্ন হয়েছে। গতকাল শনিবার জোহরের নামাজের পর দুপুর ২টায় হাটহাজারীর আল জামিয়াতুল আহলিয়া দারুল উলুম মঈনুল ইসলাম মাদরাসা মাঠে দেশের বিভিন্ন প্রান্ত থেকে আসা আলেম, শিক্ষার্থী ও শুভাকাক্সক্ষীদের উপস্থিতিতে মরহুমের নামাজে জানাজা অনুষ্ঠিত হয়। জানাজায় ইমামতি করেন মরহুমের বড় ছেলে রাঙ্গুনিয়া পাখিয়ারটিলা কওমি মাদরাসার মুহতামিম মাওলানা মোহাম্মদ ইউসুফ মাদানি। হাটহাজারী মাদরাসার শুরা কমিটির সিদ্ধান্ত অনুযায়ী, জানাজা শেষে মাদরাসা ক্যাম্পাসের অভ্যন্তরে বায়তুল আতিক জামে মসজিদের সামনের কবরস্থানে তাকে দাফন করা হয়। এর আগে গতকাল শনিবার সকাল ৯টায় তার লাশবাহী গাড়িটি মাদরাসা প্রাঙ্গণে এসে পৌঁছায়। দীর্ঘ ৩৪ বছর ধরে তিনি এই মাদরাসার মহাপরিচালকের দায়িত্বে ছিলেন। গত শুক্রবার সন্ধ্যা সাড়ে ৬টার দিকে রাজধানীর আসগর আলী হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় শেষ নিঃশ্বাস ত্যাগ করেন হেফাজতে ইসলামের আমির আল্লামা শাহ আহমদ শফী। বার্ধক্যজনিত কারণে অনেক দিন ধরে নানা শারীরিক সমস্যায় ভুগছিলেন আল্লামা শাহ আহমদ শফী। গত কয়েক বছরে তিনি বেশ কয়েক বার দেশ ও দেশের বাইরের হাসপাতালে চিকিৎসা নেন। বৃহস্পতিবার ফের অসুস্থ হয়ে পড়েন আল্লামা শাহ আহমদ শফী। রাত ১২টার দিকে ফায়ার সার্ভিসের একটি অ্যাম্বুলেন্সে করে তাকে চট্টগ্রাম হাসপাতালে নেয়া হয়। শারীরিক অবস্থার অবনতি হলে চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ (চমেক) হাসপাতালের আইসিইউতে থাকা আল্লামা শফীকে এয়ার অ্যাম্বুলেন্সে গত শুক্রবার সন্ধ্যার আগে ঢাকায় এনে আজগর আলী হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। চিকিৎসাধীন অবস্থায় সেখানেই তিনি মারা যান। প্রায় ১০৫ বছর বয়সী আল্লামা আহমদ শফী দীর্ঘদিন ধরে বার্ধক্যজনিত দুর্বলতার পাশাপাশি ডায়াবেটিস, উচ্চ রক্তচাপ ও শ্বাসকষ্টে ভুগছিলেন।

নারায়ণগঞ্জে মসজিদে বিস্ফোরণ: তিতাসের ৪ প্রকৌশলীসহ গ্রেফতার ৮

ঢাকা অফিস ॥ নারায়ণগঞ্জের পশ্চিম তল্লা এলাকার বায়তুস সালাত জামে মসজিদে ভয়াবহ বিস্ফোরণে ব্যাপক প্রাণহানির ঘটনায় দায়ের করা মামলায় তিতাসের বরখাস্ত আট কর্মকর্তা-কর্মচারীকে গ্রেফতার করেছে পুলিশের অপরাধ তদন্ত বিভাগ (সিআইডি)। গতকাল শনিবার দুপুর সাড়ে ১২টার দিকে নারায়ণগঞ্জ সিআইডি কার্যালয়ে এক সংবাদ সম্মেলনে এ তথ্য জানান সিআইডির ডিআইজি মাইনুল হাসান। তিনি বলেন, গ্রেফতারদের জিজ্ঞাসাবাদের জন্য রিমান্ডের আবেদন করা হবে। গ্রেফতাররা হলেন- তিতাসের ফতুল্লা অঞ্চলের বরখাস্ত ব্যবস্থাপক প্রকৌশলী মোহাম্মদ সিরাজুল ইসলাম, উপব্যবস্থাপক প্রকৌশলী মাহমুদুর রহমান রাব্বী, সহকারী প্রকৌশলী এসএম হাসান শাহরিয়ার, সহকারী প্রকৌশলী মানিক মিয়া, সিনিয়র সুপারভাইজার মো. মনিবুর রহমান চৌধুরী, সিনিয়র উন্নয়নকারী মো. আইউব আলী, সাহায্যকারী মো. হানিফ মিয়া ও কর্মচারী মো. ইসমাইল প্রধান। এর আগে বায়তুস সালাত জামে মসজিদে বিস্ফোরণের ঘটনায় দায়িত্বে অবহেলার অভিযোগে গত ৮ সেপ্টেম্বর ওই আট কর্মকর্তা-কর্মচারীকে সাময়িক বরখাস্ত করেছিল তিতাস গ্যাস কর্তৃপক্ষ। প্রসঙ্গত, গত ৪ সেপ্টেম্বর রাতে এশার নামাজের সময় নারায়ণগঞ্জের ফতুল্লার পশ্চিম তল্লা এলাকার বাইতুস সালাত জামে মসজিদে বিস্ফোরণ ঘটে। এ ঘটনায় দগ্ধদের মধ্যে ৩৭ জনকে উদ্ধার করে শেখ হাসিনা জাতীয় বার্ন অ্যান্ড প্লাস্টিক সার্জারি ইনস্টিটিউটে ভর্তি করা হয়। হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় এখন পর্যন্ত ৩২ জনের মৃত্যু হয়েছে। একজন চিকিৎসা নিয়ে বাসায় ফিরেছেন। বাকি মুসল্লিদের অবস্থা আশঙ্কাজনক।

যাচাই-বাছাই করে কমিটি ঘোষণা – কাদের

ঢাকা অফিস ॥ আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের বলেছেন, যে সকল কমিটি ইতোমধ্যেই জমা দেয়া হয়েছে সেগুলো এখনই ঘোষণা করা হবে না। যাচাই-বাছাই করে পরীক্ষিত নেতাকর্মীদের নাম তালিকায় আছে কি না- তা দেখা হবে। গতকাল শনিবার ওয়েস্টার্ন বাংলাদেশ ব্রিজ ইমপ্র“ভমেন্ট প্রজেক্টের (ডব্লিউবিবিআইপি) অগ্রগতি পর্যালোচনা সভায় তিনি এ কথা বলেন। ওবায়দুল কাদের তার সরকারি বাসভবন থেকে ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে সভায় যুক্ত হন। তিনি বলেন, স্বজন প্রীতি ও নিজেদের লোক দিয়ে কমিটি দেয়া হয়েছে কি না- তা খতিয়ে দেখা হবে। দীর্ঘদিনের পরীক্ষিত নেতাকর্মীদের অবশ্যই মূল্যায়ন করতে হবে। অবিতর্কিত ও ত্যাগীদের কমিটিতে অগ্রাধিকার অবশ্যই দিতে হবে এবং বিতর্কিতদের বাদ দিতে হবে। কাদের বলেন, ‘অনেকেই মনে করছেন, দুর্নীতি ও অনিয়মের বিরুদ্ধে অভিযান থেমে গেছে, এ কথা মোটেও সত্য নয়। সরকারের দুর্নীতি অনিয়মের বিরুদ্ধে শুদ্ধি অভিযান অব্যাহত রয়েছে। দলের ভেতরেও অপকর্ম করলে কেউই রেহাই পাবে না। আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক বলেন, করোনাকালে পিছিয়ে পড়া কাজগুলো অধিকতর সক্রিয়তার মধ্য দিয়ে এগিয়ে নিতে হবে। আন্তরিকতা এবং নিষ্ঠার সঙ্গে কাজ করতে হবে। কর্মসম্পাদনের স্বচ্ছতা বজায় রাখতে হবে এবং অপচয় রোধ করতে হবে। তিনি বলেন, খালি জায়গা পেলেই যত্রতত্র ভবন নির্মাণ বন্ধ করতে হবে। ভবন নয়, মানসম্মত সড়ক এবং সেতু নির্মাণই হতে হবে প্রধান কাজ। পরে আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের বঙ্গবন্ধুর জন্মশতবার্ষিকী উপলক্ষে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ঘোষিত এক কোটি গাছের চারা রোপণ কর্মসূচির অংশ হিসেবে সংসদ ভবন এলাকায় ২টি গাছের চারা রোপণ করেন।

মাদক নির্মূলে সামাজিক সচেতনতা বাড়াতে হবে – খাদ্যমন্ত্রী

ঢাকা অফিস ॥ শুধু আইন প্রয়োগ করেই সমাজ থেকে পুরোপুরি মাদক নির্মূল সম্ভব নয়। এজন্য সবাইকে সামাজিক সচেতনা বাড়াতে হবে।তবেই মাদকমুক্ত সমাজ গড়া সম্ভব হবে বলে মন্তব্য করেছেন খাদ্যমন্ত্রী সাধন চন্দ্র মজুমদার। গতকাল শনিবার দুপুরে নওগাঁর পোরশা উপজেলা চত্বর পুকুরের মাছের পোনা অবমুক্ত অনুষ্ঠানে তিনি এ মন্তব্য করেন। খাদ্যমন্ত্রী বলেন, বর্তমান সরকার মাদকে জিরো টলারেন্স। সমাজে কোনো ভাবেই যেন মাদকের বিস্তার না হয় সেদিকে প্রশাসনের পাশাপাশি সবাইকে সজাগ থাকতে হবে। দলের কোনো নেতা-কর্মীও যদি মাদকের সঙ্গে যুক্ত থাকেন তবে তাদের কাউকেই ছাড় দেওয়া হবে না। এসময় সেখানে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) নাজমুল হামিদ রেজার উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান শাহ মঞ্জুর মোরশেদ, মৎস্য আইয়ুব আলী উপস্থিত ছিলেন।

কুষ্টিয়া কালেক্টরেট স্কুলের নতুন ভবনের কাজ পরিদর্শন করলেন ডিসি আসলাম হোসেন

সুজন কর্মকার ॥ কুষ্টিয়া কালেক্টরেট স্কুল এন্ড কলেজের অনুকুলে শিক্ষা মন্ত্রনালয়ের শিক্ষা প্রকৌশল অধিদপ্তর কর্তৃক বরাদ্দকৃত একাডেমিক ভবন নির্মাণ কাজ পরিদর্শন করেছেন কুষ্টিয়ার জেলা প্রশাসক মোঃ আসলাম হোসেন। গতকাল ১৯ সেপ্টেম্বর শনিবার বেলা সাড়ে ১১টায় তিনি এ নতুন ভবন নির্মাণ কাজ পরিদর্শন করেন। এসময় অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (সার্বিক, শিক্ষা ও আইসিটি) লুৎফুন নাহার, নেজারত ডেপুটি কালেক্টর (এনডিসি) মোঃ তাইফুর রহমান, কালেক্টরেট স্কুলের প্রধান শিক্ষক মৃনাল কান্তি সাহাসহ শিক্ষা প্রকৌশল অধিদপ্তর ও ঠিকাদার প্রতিষ্ঠানের কর্মকর্তাবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন। এর আগে জেলা প্রশাসক মোঃ আসলাম হোসেন কালেক্টরেট জামে মসজিদের নতুন গেট নির্মাণ কাজও পরিদর্শন করেন।

কুষ্টিয়ার মিরপুরে তের ঘন্টার ব্যবধানে প্রাণ গেল বাবা-মা ও মেয়ের

নিজ সংবাদ ॥ মিরাজুল ইসলামকে (৪৫) শান্তনা দেবার ভাষা খুঁজে পাচ্ছেন না কেউ। ডুকরে ডুকরে কেঁদে উঠছেন  তিনি। কেননা সারাদিনটা কেটেছে তার গোরস্থানে। রাতে অসুস্থ হয়ে মারা যাওয়া মাকে সকালে দাফন করার পরপরই শুনতে পান এক বোনও মারা গেছেন। বোনের মৃত্যুর এক ঘন্টা পর বাবার মৃত্যু হয়। ঘটনাটি ঘটেছে কুষ্টিয়ার মিরপুর উপজেলার গোবিন্দগুনিয়া গ্রামে।

মারা যাওয়া ব্যক্তিরা হলেন, লালন মল্লিক (৭৫), লালন মল্লিকের স্ত্রী আনজেরা খাতুন (৬৫) ও তাদের মেয়ে আঙ্গুরা খাতুন (৪০)।

পরিবার সূত্র জানায়, লালন মল্লিক প্রায় ৪৫ বছর ধরে মিরপুর শহরে থানার পাশে চায়ের দোকান রয়েছে। তার দুই ছেলে ও তিন মেয়ে। সবারই বিয়ে হয়ে গেছে। গত ১০ সেপ্টেম্বর আনজেরা খাতুন জ্বরে আক্রান্ত হন। এরপর তাকে রাজশাহী মেডিকেল কলেজে ভর্তি করা হয়। সেখানে সাত দিন চিকিৎসা শেষে বাড়িতে আসেন। তবে তার শরীর খুবই দুর্বল ছিল। খাওয়া দাওয়া বন্ধ করে দেন। এদিকে গত বুধবার হঠাৎ করে লালন মল্লিক স্ট্রোক করলে তাকে মিরপুর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করা হয়।

গত শুক্রবার রাত সাড়ে দশটায় স্ট্রোক করে আনজেরা খাতুন মারা যান। লালন মল্লিক হাসপাতাল থেকে বাড়িতে নিয়ে আসা হয়। তবে তিনি বিছানাগত হয়ে পড়েছিলেন। গতকাল শনিবার সকাল নয়টায় আনজেরা খাতুনকে স্থানীয় গোরস্থানে তাকে দাফন করা হয়। দাফন শেষ করে সবাই যার যার বাড়ি চলে যান। সন্তানদের মধ্যে তৃতীয় আঙ্গুরা খাতুনও বাবার বাড়ির পাশের গ্রাম নওয়াপাড়া চলে যান।

তৃতীয় বোন আঙ্গুরা খাতুন বাড়িতে যাবার পরপরই অসুস্থ হয়ে পড়েন। গতকাল শনিবার সকাল সাড়ে দশটায় তিনিও স্ট্রোক করে মারা যান। মিরাজুল বোনের লাশ দেখতে ছুটে যান। বোনের বাড়ি পৌছা মাত্রই সাড়ে এগারটার দিকে শুনতে পান বিছানাগত থাকা বাবাও না ফেরার দেশে গেছেন। মিরাজুল আবার ছুটে যান বাবার কাছে। বিকেল সাড়ে চারটায় বাবাকে দাফন করেন।

মিরাজুল কান্নাজড়িত কন্ঠে বলেন, বাবা মায়ের জানাজা তিনি নিজেই করেছেন। তের ঘন্টার ব্যবধানে বাবা মা ও বোনকে হারানো কতটা কষ্টের ও বেদনার তা কাউকে বলে বোঝানো যাবে না। আজ মৃত্যুর খবর শোনার দৌড়ের ওপরই ছিলেন।