কেমিক্যাল দিয়ে ধর্ষকদের নপুংসক করে দেওয়ার প্রস্তাব ইমরান খানের

ঢাকা অফিস ॥ কিছুদিন আগে পাকিস্তানের লাহোর হাইওয়ের উপরে ফ্রান্সের এক নারীকে তার দুই সন্তানের সামনেই গণধর্ষণ করে একদল দুষ্কৃতী। পুলিশের কাছে এই বিষয়ে অভিযোগ জানাতে গেলে তারা নির্যাতিতাকেই এর জন্য দায়ী করে। এই ঘটনার কথা প্রকাশ্যে আসার পরেই লাহোরের রাস্তায় নেমে বিক্ষোভ দেখাণ বিভিন্ন মানবাধিকার সংগঠনের সদস্যরা। পরিস্থিতি জটিল হচ্ছে বুঝতে পেরে ইতোমধ্যে ১৫ জনকে গ্রেফতারও করেছে পাকিস্তানের পুলিশ।  এই নিয়ে টানাপোড়েনের মধ্যেই ধর্ষকদের প্রকাশ্যে ফাঁসি দেওয়ার বা কেমিক্যাল ব্যবহার করে তাদের নপুংসক বানানোর প্রস্তাব দিলেন পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রী ইমরান খান। তিনি বলেন, এই ধরণের জঘন্য যৌন অপরাধগুলির ক্ষেত্রে দোষীদের প্রকাশ্যে ফাঁসি দেওয়া উচিত। কিন্তু এই ধরণের পদক্ষেপ নিলে তা অন্য দেশগুলির সঙ্গে থাকা বাণিজ্যিক সম্পর্কে প্রভাব ফেলতে পারে। পড়তে হতে পারে আন্তর্জাতিক মহলের ক্ষোভের মুখেও। কারণ ইওরোপীয় ইউনিয়নগুলির মতো আন্তর্জাতিক সংগঠনগুলি অনেকেই মৃত্যুদন্ডের বিরোধী। এরপরই এই ধরনের অপরাধে যুক্ত ধর্ষকদের যৌন ক্ষমতা নষ্ট করার পক্ষে সরব হন তিনি। ইমরান খান বলেন, আমি মনে করি এই ধরনের অপরাধীদের উপর কেমিক্যাল প্রয়োগ করে তাদের যৌন ক্ষমতা নষ্ট করে দেওয়া উচিত। বিশ্বের অনেক দেশেই এই শাস্তি দেওয়া হয় বলে আমি পড়েছি। প্রসঙ্গত উল্লেখ্য, গত ১১ সেপ্টেম্বর রাতে দুই সন্তানকে নিয়ে গাড়ি চালিয়ে লাহোর এর উপর দিয়ে গুজরানওয়ালা প্রদেশে যাচ্ছিলেন ফ্রান্সের ওই নারী। লাহোর হাইওয়ে দিয়ে যাওয়ার সময় হঠাৎ তার গাড়ির তেল ফুরিয়ে যায়। সঙ্গে সঙ্গে স্বামীকে ফোন করে নিজের বিপদের কথা জানান তিনি।। তারপর স্বামীর পরামর্শ মতো পুলিশকে ফোন করে সাহায্য করার আবেদন জানান। কিন্তু পুলিশ আসার আগেই সেখানে ১০ থেকে ১৫ জন যুবক এসে হাজির হয়। তারপর গাড়ির জানলার কাঁচ ভেঙে তাকে বাইরে বের করে তার দুই সন্তানের সামনেই একে একে ধর্ষণ করে। বেশ কিছুক্ষণ ধরে এই পাশবিক ঘটনা ঘটলেও পুলিশের কোনও টহলদারি ভ্যানকে দেখা যায়নি। এদিকে নিজেদের বিকৃত লালসা চরিতার্থ করার পর দুষ্কৃতীরা ওই নারীর তিনটি এটিএম কার্ড ও সঙ্গে থাকা টাকা ও গয়না নিয়ে পালিয়ে যায়।

কালুখালীতে কৃষকের মাঝে বিনামূল্যে শাক-সবজির বীজ বিতরণ

ফজলুল হক ॥ গতকাল বুধবার রাজবাড়ীর কালুখালীতে প্রণোদনা কর্মসূচীর আওতায় ২০২০-২১ অর্থবছরে খরিপ-২ মৌসুমী ক্ষুদ্র ও প্রান্তিক কৃষকদের মাঝে বিনামূল্যে শাক-সবজির বীজ বিতরণ করা হয়েছে। কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তর কালুখালীর আয়োজনে সকাল ১১ টায় উপজেলা কৃষি অফিস থেকে ৭টি ইউনিয়নের ৩০০ কৃষকের মাঝে ১২ পদের সবজি বীজ বিতরণ করা হয়। এসময় উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান আলিউজ্জামান চৌধুরী (টিটো), উপজেলা নির্বাহী অফিসার (ভারপ্রাপ্ত) শেখ নুরুল আলম, উপজেলা কৃষি অফিসার মোহাম্মদ মাছিদুর রহমানসহ কৃষি অফিসের অন্যান্যরা উপস্থিত ছিলেন। উল্লেখ্য ১২ পদের বীজের মধ্যে লালশাক, ডাটা, কলমি, মূলা, পালংশাক, শষা, লাউ, মিস্টিকুমড়া, করলা, মরিচ, বড়বটি ও সীমবীজ বিতরণ করা হয়।

ব্যবসায়ীদের পেঁয়াজ আমদানি করতে দিতে হবে – জিএম কাদের

ঢাকা অফিস ॥ জাতীয় পার্টি চেয়ারম্যান ও বিরোধী দলীয় উপনেতা জিএম কাদের বলেছেন, টিসিবি’র মাধ্যমে পেঁয়াজ সরবরাহ করে বাজার স্বাভাবিক করা সম্ভব নয়। টিসিবি’র মাধ্যমে একটি অংশকে রিলিফ দেওয়া সম্ভব। আবার বাণিজ্য মন্ত্রণালয়ের মাধ্যমে পেঁয়াজ আমদানি করে বাজার স্বাভাবিক রাখা সম্ভব নয়। বাজার স্বাভাবিক রাখতে ব্যবসায়ীদের পেঁয়াজ আমদানি করতে দিতে হবে। ব্যবসায়ীদের আমদানির সব খরচসহ নির্দিষ্ট ব্যবসা নিশ্চিত করে বিক্রিতে প্রয়োজনে সরকারিভাবে তদারকি থাকতে পারে। এতে আমদানি বাড়বে ও বাজার স্বাভাবিক থাকবে। গতকাল বুধবার দুপুরে জাতীয় পার্টি চেয়ারম্যানের বনানী কার্যালয়ে জাতীয় সড়ক পরিবহন মোটর শ্রমিক ফেডারেশন রেজিস্ট্রেশন নম্বর- ২৭২৩ নেতাদের সঙ্গে মত বিনিময় সভায় তিনি এসব  কথা বলেন।

 

 

আমি সম্পূর্ণ নির্দোষ, আদালতে সাহেদ

ঢাকা অফিস ॥ অস্ত্র আইনে করা মামলায় নিজেকে সম্পূর্ণ নির্দোষ দাবি করে ন্যায়বিচার প্রত্যাশা করেছেন রিজেন্ট গ্রুপ ও হাসপাতালের চেয়ারম্যান সাহেদ করিম। গতকাল বুধবার ঢাকা মহানগর দায়রা জজ কে এম ইমরুল কায়েশের আদালতে আত্মপক্ষ সমর্থনে এ দাবি করেন তিনি। এ সময় আদালত তাকে জিজ্ঞাসা করেন, তিনি সাফাই সাক্ষী দেবেন কি-না। উত্তরে সাহেদ বলেন, ‘আমি সাফাই সাক্ষী দেব না। এরপর আদালত রাষ্ট্রপক্ষের যুক্তি উপস্থাপনের জন্য আজ বৃহস্পতিবার দিন ধার্য করেন।’ আত্মপক্ষ সমর্থনে সাহেদ বলেন, ‘আমার কাছ থেকে কোনো অস্ত্র উদ্ধার করা হয়নি। আমি সম্পূর্ণ নির্দোষ। আমি আদালতের কাছে ন্যায়বিচার প্রত্যাশা করছি।’ এর আগে গত মঙ্গলবার এ মামলায় সাক্ষ্যগ্রহণ সমাপ্ত ঘোষণা করেন আদালত। এবং আত্মপক্ষ সমর্থনের জন্য গতকাল বুধবার দিন ধার্য করেন। মামলায় ১৪ জন সাক্ষীর মধ্যে ১১ জনের সাক্ষ্য নেয়া হয়েছে। করোনায় প্রতারণার অভিযোগে গত ১৫ জুলাই সাতক্ষীরার সীমান্তবর্তী এলাকা থেকে সাহেদকে গ্রেফতার করে র‌্যাব। পরে হেলিকপ্টারে তাকে ঢাকায় আনা হয়। পরদিন করোনা পরীক্ষার নামে ভুয়া রিপোর্টসহ বিভিন্ন প্রতারণার অভিযোগে দায়ের করা মামলায় সাহেদের ১০ দিনের রিমান্ড মঞ্জুর করেন আদালত। এরপর তাকে নিয়ে উত্তরায় অভিযানে যায় ডিবি পুলিশ। অভিযানে গিয়ে অস্ত্র উদ্ধার করা হয়। অস্ত্র উদ্ধারের ঘটনায় ডিবি পুলিশের পরিদর্শক এস এম গাফফারুল আলম তার বিরুদ্ধে উত্তরা পশ্চিম থানায় মামলা করেন। গত ৩০ জুলাই ঢাকা মহানগর হাকিম মোর্শেদ আল মামুন ভূঁইয়ার আদালতে আসামি সাহেদের বিরুদ্ধে চার্জশিট দাখিল করেন মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা ডিবি পুলিশের পরিদর্শক মো. শায়রুল। ২৭ আগস্ট ঢাকা মহানগর দায়রা জজ কে এম ইমরুল কায়েশ তার বিরুদ্ধে অভিযোগ গঠন করেন।

 

ভারতে করোনা আক্রান্তের সংখ্যা ৫০ লাখ ছাড়াল

ঢাকা অফিস ॥ ভারতে কভিড-১৯ রোগীর সংখ্যা ৫০ লাখ ছাড়িয়ে গেছে। আন্তর্জাতিক জরিপকারী সংস্থা ওয়ার্ল্ডওমিটারের হিসাব অনুযায়ী, বুধবার সকাল সাড়ে আটটা পর্যন্ত দেশটিতে ৫০ লাখ ১৮ হাজার ৩৪ জন রোগী পজিটিভ হিসেবে শনাক্ত হয়েছেন। ভারতে সুস্থ হয়েছেন ৩৯ লাখ ৩৯ হাজার ১১১ জন। মারা গেছেন ৮২ হাজার ৯১ জন। গোটা পৃথিবীতে মোট রোগীর সংখ্যা দাঁড়িয়েছে ২ কোটি ৯৭ লাখ ২৪ হাজার ১১৭ জনে। বিপরীতে মারা গেছেন ৯ লাখ ৩৯ হাজার ১৪০ জন। সুস্থ ২ কোটি ১৫ লাখ ৩৮ হাজার ৫৪৭ জন। আক্রান্ত এবং মৃতের তালিকায় শীর্ষে থাকা যুক্তরাষ্ট্রে ৬৭ লাখ ৮৮ হাজার ১৪৭ জন শনাক্ত হয়েছেন। মারা গেছেন ২ লাখ ১৯৭ জন। সুস্থ ৪০ লাখ ৬৮ হাজার ৮৬ জন। ব্রাজিলে ১ লাখ ৩৩ হাজার ২০৭ জনের প্রাণ গেছে কভিড-১৯ রোগে। দেশটিতে মোট আক্রান্ত ৪৩ লাখ ৮৪ হাজার ২৯৯ জন। করোনা ‘প্রতিরোধী’ ভ্যাকসিন অনুমোদনের ঘোষণা দেয়া রাশিয়ায় এখন পর্যন্ত ১০ লাখ ৭৩ হাজার ৮৪৯ জন রোগী শনাক্ত হয়েছেন। মারা গেছেন ১৮ হাজার ৭৮৫ জন।

করোনায় আক্রান্ত বাহাউদ্দিন নাছিম

ঢাকা অফিস ॥ আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক কৃষিবিদ আ ফ ম বাহাউদ্দিন নাছিম করোনায় আক্রান্ত হয়েছেন। করোনার কিছু উপসর্গ দেখা দিলে তিনি নমুনা পরীক্ষা করাতে দেন। মঙ্গলবার করোনা রিপোর্ট পজিটিভ এসেছে। গতকাল বুধবার এ বিষয়ে জানতে টেলিফোনে যোগাযোগ করা হলে বাহাউদ্দিন নাছিম তার করোনা পজিটিভের বিষয়টি নিশ্চিত করেন। বর্তমানে তিনি  রাজধানীর একটি হাসপাতালে চিকিৎসাধীন আছেন বলে জানান।

 

পেঁয়াজের মূল্যবৃদ্ধি সরকারের ব্যর্থতার বহিঃপ্রকাশ – রিজভী

ঢাকা অফিস ॥ বিএনপির জ্যেষ্ঠ যুগ্ম মহাসচিব অ্যাডভোকেট রুহুল কবীর রিজভী আহমেদ বলেছেন, এমনিতেই নিত্যপ্রয়োজনীয় জিনিসপত্রের মূল্যবৃদ্ধিতে মানুষ দিশেহারা, তার ওপর এখন পেঁয়াজের এই অকল্পনীয় মূল্যবৃদ্ধি বর্তমান সরকারের ব্যর্থতার বহিঃপ্রকাশ। গতকাল বুধবার রাজধানীর নয়াপল্টনে দলের কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে অনুষ্ঠিত সংবাদ সম্মেলনে তিনি এ আহ্বান জানান। রিজভী বলেন, সরকার সমর্থিত ব্যবসায়ী সিন্ডিকেটের কারণে পেঁয়াজের দাম বাড়ছে। পেঁয়াজের স্বাভাবিক সরবরাহ ও ন্যায্যমূল্য নিশ্চিত করতে কঠোর বাজার মনিটরিংয়ের আহ্বান জানাচ্ছি। তিনি আরও বলেন, দেশবাসীর দৈনন্দিন জীবনের সুখ-শান্তি আজ একের পর এক কেড়ে চলেছে এই ভোটারবিহীন গণবিরোধী সরকার। জবরদস্তিমূলক ক্ষমতা দখলকারীদের দৌরাত্ম্যে রাজনৈতিক সংকটের পাশাপাশি গুম, খুন ও ধর্ষণের ঘটনায় গোটা রাষ্ট্র মনুষ্যত্বহীন চেহারা ধারণ করে জনগণকে নিষ্পেষিত করছে। বিএনপির এই মুখপাত্র বলেন, দেশে সীমাহীন বেকারত্ব, কর্মসংস্থানের অভাব ও নিত্যপ্রয়োজনীয় দ্রব্যের অস্বাভাবিক মূল্যবৃদ্ধিতে সরকারের কোনো দায়িত্ব নেই। জনগণের কষ্টের প্রতি এই অগণতান্ত্রিক সরকারের ভ্রুক্ষেপ নেই। হঠাৎ করে বাজারে লাফ দিয়ে পেঁয়াজের দামের অসহনীয় মূল্যবৃদ্ধি আবারও প্রমাণ করে যে, সরকার জনগণের প্রাণের বিনিময়ে অবৈধভাবে ক্ষমতায় টিকে থাকাকেই বড় করে দেখছে। রিজভী বলেন, নিত্যপ্রয়োজনীয় দ্রব্যসহ পেঁয়াজের এই অগ্নিমূল্যে স্বল্প আয়ের মানুষের নাভিশ্বাস উঠেছে। প্রতিদিনই লাফিয়ে লাফিয়ে পেঁয়াজের দাম বৃদ্ধি পাচ্ছে। এক সপ্তাহ আগে প্রতি কেজি পেঁয়াজ বিক্রি হয়েছে ৩০-৪০ টাকায়। গত দুই দিন আগেও পেঁয়াজের দাম ছিল ৫০-৫৫ টাকা, আর আজকে পেঁয়াজের দর সেঞ্চুরি হাঁকিয়েছে। তিনি বলেন, ভারতে ইলিশ উপহার হিসেবে প্রেরণ করার সাথেই সাথেই বাংলাদেশে পেঁয়াজ রফতানি বন্ধ করে দিয়েছে ভারত। বাংলাদেশ এই সংবাদ পৌঁছানোর সঙ্গে সঙ্গেই বাজার সিন্ডিকেটের হোতারা তেলেসমাতি শুরু করে দেয়। বাজার অস্থির হয়ে পড়ে। দেশে পেঁয়াজ মজুত থাকলেও বিক্রি কমিয়ে দিয়েছেন অসাধু ব্যবসায়ীরা। ফলে বাজারে পেঁয়াজের তীব্র সংকট দেখা দিয়েছে, এই সংকট কৃত্রিম।

১০ মাস টাকা দেয়ার পরেও ঘর পাইনি গৃহহীন মজিদ

ছাতিয়ান ইউপি চেয়ারম্যানের বিরুদ্ধে গৃহহীনদের ঘর করে দেয়ার নামে অর্থ হাতিয়ে নেওয়ার অভিযোগ

নিজ সংবাদ ॥ কুষ্টিয়ার মিরপুর উপজেলার ছাতিয়ান ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান জসিম উদ্দিনের বিরুদ্ধে  নিঃস্ব, অসহায়, গৃহহীন মানুষকে নিচে পাকা উপরে টিন ও পাকা বাথরুম করে দেওয়ার নাম করে লাখ লাখ টাকা হাতিয়ে নেওয়ার অভিযোগ উঠেছে। জানা যায়, ছাতিয়ান গ্রামের মৃত রহমানের  ছেলে গৃহহীন বৃদ্ধা আব্দুল মজিদ (৬৫) জানতে পারে টাকা দিলে চেয়ারম্যানের মাধ্যমে নিচে পাড়া উপরে টিন ও পাকা বাথরুমসহ গৃহ পাওয়া যাবে, তাই ১০ মাস আগে তার একমাত্র সম্বল একটি গরু ৫৯ হাজার ৫০০ টাকায় বিক্রয় করে সমুদয় টাকা জসিম চেয়ারম্যানকে প্রদান করে। এখন পর্যন্ত ২ কন্যা সন্তানের জনক গৃহহীন দিনমুজুরী মজিদকে সরকারের দেওয়া ঘর জসিম চেয়ারম্যান কাছ থেকে বুঝে পাই নাই। সামনে চেয়ারম্যান নির্বাচন তাই মহাচিন্তায় কাল যাপন করছেন বৃদ্ধ আব্দুল মজিদ। নির্বাচনে যদি জসিম হেরে যায় তাহলে অসহায় নিঃস্ব আব্দুল মজিদ প্রভাবশালী জসিম চেয়ারম্যানের কাছ থেকে কেমন করে টাকা আদায় করবে। এছাড়াও ছাতিয়ান গ্রামের সাইফুল পিতা রাজন ৩৫ হাজার টাকা, আফু পিতা মঙ্গল মোল্লা ২৫ হাজার টাকা, এরশাদ গ্রাম ছাতিয়ার ৫০ হাজার টাকা এবং সাইদুল ১৫ হাজার টাকা জসিম চেয়ারম্যানকে প্রদান করছে পাকা ঘর নেওয়ার আশায়। এখন পর্যন্ত ঘরের কোন ব্যবস্থা না হওয়ায় দুঃচিন্তার ভাঁজ দেখা দিয়েছেন এই সব অসহায় গৃহহীন দরিদ্র মানুষের কপালে। জানা যায়- কামাল ৫৫ হাজার, জামাল, সামাল পিতা সামছের টাকা দিয়ে ঘর বুঝে পেয়েছেন। এভাবেই ছাতিয়ান ইউনিয়নের বিভিন্ন ওয়ার্ডের অসহায়, দরিদ্র, গৃহহীনদের কাছ থেকে সরকারী ঘর দেওয়ার নামে মোটা অংকের অর্থ হাতিয়ে নিয়েছেন জসিম চেয়ারম্যান। মিরপুর উপজেলার নির্বাহী কর্মকর্তা লিংকন বিশ^াস বলেন- মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা দারিদ্র নিঃস্ব গৃহহীন মানুষকে মাথা গুজার জন্য আধাপাকা গৃহ নির্মাণ করে গৃহ সমস্যা লাঘব করার জন্য কাজ করছে। সেখানে কোন চেয়ারম্যান ও মেম্বর যদি এই মহতী উদ্দোগকে ব্যহত করার জন্য টাকা গ্রহন করলে তার বিরুদ্ধে প্রশাসনিক ব্যবস্থা নেওয়া হবে। জানা যায় বয়স্ক ভাতা, বিধবা ভাতা এর কার্ড করে দেওয়ার নামে বিভিন্ন মানুষের নিকট থেকে টাকা নেওয়ার অভিযোগ আছে জসিম চেয়ারম্যান বিরুদ্ধে।

করোনা মোকাবেলায় সাধারণ মানুষের স্বাস্থ্য সুরক্ষার লড়াইয়ে যশোর সেনানিবাস

করোনা যুদ্ধে বিপন্ন মানুষের ভেতর শক্তি ও সাহস জুগিয়ে সাধারণ মানুষের সুরক্ষার জন্য ক্লান্তিহীনভাবে কাজ করে যাচ্ছে বাংলাদেশ  সেনাবাহিনী। করোনা পরিস্থিতি মোকাবেলায় নিয়মিত টহলের পাশাপাশি স্থানীয় বাজারগুলোতে মাইকিং এর মাধ্যমে সামাজিক দূরত্ব নিশ্চিতকরণ ও জনসচেতনতা সৃষ্টিমূলক কার্যক্রম পরিচালনা অব্যাহত রয়েছে। গণপরিবহনসহ অন্যান্য যানবাহন যাতে করোনাকালীন সময়ে অতিরিক্ত যাত্রী বহন করতে না পারে সেজন্য  সেনাসদস্যদের তৎপরতা অব্যাহত রাখার পাশাপাশি অসহায় ও হতদরিদ্র মানুষের বাড়ী বাড়ী গিয়ে খাদ্য সহায়তা পৌছে দেয়া, ফ্রী চিকিৎসা সেবা ও ঔষধ বিতরণসহ সকল প্রকার মানবিক কার্যক্রম অব্যাহত রেখেছে যশোর সেনানিবাসের সেনাসদস্যরা। অন্যদিকে খুলনার উপকূলীয় এলাকায় বাঁধ নির্মাণ অব্যাহত রাখার পাশাপাশি জরুরী চিকিৎসা সহায়তা প্রদান, বিশুদ্ধ পানি সরবরাহসহ নানাবিধ জনসেবামূলক কার্যক্রম অব্যাহত রেখেছে যশোর সেনানিবাসের  সেনাসদস্যরা। সংবাদ বিজ্ঞপ্তি

মিরপুরে বিচারের দাবিতে মরদেহ সামনে নিয়ে এলাকাবাসীর মানববন্ধন

আমলা অফিস ॥ কুষ্টিয়ার মিরপুরে স্বামী-শাশুড়ীর নির্যাতনে নিহত গৃহবধু মিম হত্যার বিচারের দাবিতে মিমের  মরদেহ সামনে রেখে মানববন্ধন করেছে নিহত মিমের স্বজন ও এলাকাবাসী । গতকাল বুধবার সকালে মিরপুর উপজেলার কচুয়াদহ গ্রামে মিমের দাফনের আগে তার কফিন সামনে রেখে এই মানববন্ধন করেন মিমের বিক্ষুব্ধ স্বজন ও এলাকাবাসী। এসময় তারা মিমের হত্যাকারী হিসেবে মিমের স্বামীসহ তার শাশুড়ীর ফাসির দাবী জানান। নিহত মিমের মা তাজমা খাতুন জানান, ৪ বছর আগে কুষ্টিয়ার দৌলতপুরের তারাগুনিয়া এলাকার মৃত জিন্না মোল্লার ছেলে এজাজ আহম্মেদ বাপ্পী’র সাথে মিমের পারিবারিকভাবে বিয়ে হয়। বিয়ের কিছুদিন পর থেকেই যৌতুকের দাবীতে বাপ্পীর মা এবং বাপ্পী মিমের উপর নির্যাতন চালাতো। গত ২ সেপ্টেম্বর মোটরসাইকেলের দাবী তুলে মিমকে বেধড়ক পিটিয়ে আহত করে, কাউকে কিছু না জানিয়ে কুষ্টিয়া জেনারেল হাসপাতালে নিয়ে ভর্তি করে চলে যায় বাপ্পী। পরে প্রতিবেশিদের কাছ থেকে খবর পেয়ে মিমের স্বজনরা কুষ্টিয়া জেনারেল হাসপাতালে মিমকে খুজে পায়। পরেরদিন তার অবস্থার অবনতি ঘটলে তাকে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসাপাতলে নেয়া হয়। সেখানে ১৩ দিন আইসিইউতে মৃত্যুর সাথে পাঞ্জা লড়ে মঙ্গলবার ভোরে মারা যায় মিম।

 

রিফাত হত্যা

রায়ের আগ পর্যন্ত আইনজীবীর জিম্মায় থাকবেন মিন্নি

ঢাকা অফিস ॥ বহুল আলোচিত বরগুনার রিফাত শরীফ হত্যা মামলায় উচ্চ আদালতের দেয়া জামিনের মেয়াদ শেষ হওয়ার পর নিহত রিফাতের স্ত্রী আয়েশা সিদ্দিকা মিন্নিকে তার মনোনীত আইনজীবীর জিম্মায় দিয়েছেন আদালত। গতকাল বুধবার দুপুরে মিন্নিকে তার মনোনীত আইনজীবী অ্যাডভোকেট মাহবুবুল বারী আসলামের জিম্মায় দেন বরগুনা জেলা ও দায়রা জজ আদালতের বিচারক মো. আছাদুজ্জামান। এর আগে পূর্বনির্ধারিত তারিখ অনুযায়ী মিন্নিকে নির্দোষ প্রমাণের জন্য উপস্থাপিত যুক্তি খ-নের দিন ধার্য থাকায় সকাল ৯টার দিকে বাবা মোজাম্মেল হোসেন কিশোরের সঙ্গে আদালতে আসেন আয়েশা সিদ্দিকা মিন্নি। এছাড়াও কড়া নিরাপত্তায় আদালতে হাজির করা হয় এ মামলার কারাগারে থাকা প্রাপ্তবয়স্ক আট আসামিকেও। এরপর বেলা ১১টার দিকে বরগুনা জেলা ও দায়রা জজ আদালতে মিন্নির পক্ষে উপস্থাপিত যুক্তি খন্ডন শুরু করেন রাষ্ট্রপক্ষের আইনজীবীরা। যুক্তি খন্ডন শেষে উচ্চ আদালতের দেয়া মিন্নির জামিনের মেয়াদ শেষ হওয়ায় মিন্নিকে নিজের জিম্মায় জামিনে রাখতে তার পক্ষে আদালতে আবেদন করেন মিন্নির আইনজীবী অ্যাডভোকেট মাহবুবুল বারী আসলাম। এরপর এ আবেদন মঞ্জুর করে আদালত রায়ের আগ পর্যন্ত মিন্নিকে আইনজীবী মাহবুবুল বারী আসলামের জিম্মায় দেন।। একই সঙ্গে ১০ আসামির পক্ষে-বিপক্ষে যুক্তিতর্ক উপস্থাপন শেষে হওয়ায় আগামী ৩০ সেপ্টেম্বর এ মামলার রায়ের দিন ধার্য করেন আদালত। এ বিষয়ে মিন্নির আইনজীবী অ্যাডভোকেট মাহবুবুল বারী আসলাম বলেন, এ মামলার যুক্তিতর্ক শেষ হওয়ার সঙ্গে সঙ্গে উচ্চ আদালতের দেয়া মিন্নির জামিনের মেয়াদ শেষ হয়ে যায়। এরপর মিন্নিকে আমার জিম্মায় জামিনে মুক্ত রাখার জন্য আবেদন করি। পরে আদালত এ আবেদন মঞ্জুর করে রায়ের আগ পর্যন্ত মিন্নিকে আমার জিম্মায় জামিন দেন। আগামী ৩০ সেপ্টেম্বর এ মামলার রায় ঘোষণার দিন মিন্নিকে আদালতে হাজির করা হবে বলেও জানান তিনি। গত বছরের ২৬ জুন রিফাত হত্যাকা- সংগঠিত হয়। হত্যাকান্ডের একদিন পর ১২ জনের নাম উল্লেখ করে অজ্ঞাত আরও ৫-৬ জনকে আসামি করে বরগুনা সদর থানায় একটি হত্যা মামলা দায়ের করেন নিহত রিফাতের বাবা। এ মামলায় মিন্নিকে প্রধান সাক্ষী করেন নিহত রিফাতর বাবা দুলাল শরীফ। হত্যাকা-ের ২০ দিন পর গত বছরের ১৬ জুলাই মিন্নিকে তার বাবার বাসা থেকে বরগুনা পুলিশ লাইন্সে নিয়ে জিজ্ঞাসাবাদ করে পুলিশ। পরে জিজ্ঞাসাবাদ শেষে ওইদিন রাতেই মিন্নিকে গ্রেফতার দেখায় পুলিশ। পরে গত বছরের ১৭ জুলাই মিন্নিকে বরগুনার সিনিয়র জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালতে হাজির করে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য সাত দিনের রিমান্ড আবেদন করে পুলিশ। পরে শুনানি শেষে আদালত মিন্নির পাঁচ দিনের রিমান্ড মঞ্জুর করেন। পরে গত বছরের ২০ জুলাই পাঁচ দিনের রিমান্ডের তৃতীয় দিনেই একই আদালতে রিফাত হত্যাকা-ে জড়িত থাকার কথা স্বীকার করে ১৬৪ ধারায় স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দেন মিন্নি। এরপর তাকে কারাগারে পাঠানোর নির্দেশ দেন বিচারক মোহাম্মদ সিরাজুল ইসলাম গাজী। এরপর টানা ৪৯ দিন কারাভোগের পর গত বছরের ৩ সেপ্টেম্বর গণমাধ্যমের সঙ্গে কথা না বলার শর্তে উচ্চ আদালতের নির্দেশে বরগুনার কারাগার থেকে জামিনে মুক্ত হন মিন্নি। জামিনে মুক্ত হওয়ার পর থেকেই বাবা মো. মোজাম্মেল হোসেন কিশোরের জিম্মায় বাবার বাড়িতেই রয়েছেন মিন্নি।

আমিরাত-বাহরাইন-ইসরায়েলের চুক্তিকে মধ্যপ্রাচ্যের নতুন ভোর বললেন ট্রাম্প

ঢাকা অফিস ॥ জেরুজালেম, ১৬ সেপ্টেম্বর- ইসরায়েলের সঙ্গে সংযুক্ত আরব আমিরাত এবং বাহরাইনের ঐতিহাসিক চুক্তিকে ‘মধ্যপ্রাচ্যের নতুন ভোর’ বলে উল্লেখ করেছেন মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প। ইসরায়েলের সঙ্গে দুই উপসাগরীয় দেশের সম্পর্ক সম্পূর্ণ স্বাভাবিক করার ওই চুক্তি স্বাক্ষরের অনুষ্ঠানে বক্তব্য রেখেছেন প্রেসিডেন্ট ট্রাম্প। ইসরায়েল, আরব আমিরাত এবং বাহরাইন নিজেদের মধ্যকার এই চুক্তিকে ঐতিহাসিক চুক্তি বলে উল্লেখ করেছে। প্রেসিডেন্ট ট্রাম্প নিজেও এই চুক্তিকে ঐতিহাসিক চুক্তি বলেছেন। মূলত ট্রাম্প প্রশাসনের প্রচেষ্টাতেই ইসরায়েলের সঙ্গে সম্পর্ক স্বাভাবিক করার প্রক্রিয়ায় শুরু হয়েছে। ১৯৪৮ সালে ইসরায়েলের সূচনার পর বাহরাইন ও আরব আমিরাত যথাক্রমে ৩য় ও ৪র্থ উপসাগরীয় দেশ হিসেবে ইসরায়েলকে স্বীকৃতি দিল। এদিকে, প্রেসিডেন্ট ট্রাম্প আশা প্রকাশ করেছেন যে, অন্যান্য দেশও আমিরাত এবং বাহরাইনকে অনুসরণ করবে। তবে ইসরায়েলের সঙ্গে যতদিন পর্যন্ত দ্বন্দ্বের সমাধান হবে না তার আগ পর্যন্ত বিভিন্ন দেশকে এমন পদক্ষেপ থেকে বিরত থাকার আহ্বান জানিয়েছে ফিলিস্তিন। বছরের পর বছর ধরে বেশিরভাগ আরব দেশই ইসরায়েলকে বয়কট করে এসেছে। আরব দেশগুলো বরাবরই বলে এসেছে যে, ফিলিস্তিনের সঙ্গে ইসরায়েলের বহু বছর ধরে চলা দ্বন্দ্বের সমাধান হলেই কেবল তারা ইসরায়েলের সাথে সম্পর্ক স্থাপন করবে। কিন্তু বর্তমান চিত্র একেবারেই আলাদা। অনেক আরব দেশই এখন ইসরায়েলের সঙ্গে চুক্তি করছে। আবার অনেকেই সম্পর্ক স্বাভাবিক করতে চাইছে। মঙ্গলবার হোয়াইট হাউসে চুক্তি স্বাক্ষরের সময় কয়েকশো মানুষ জড়ো হয়েছিলেন। সে সময় তাদের উদ্দেশে ট্রাম্প বলেন, কয়েক দশকের বিভক্তি এবং সংঘাতের পর আমরা নতুন এক মধ্যপ্রাচ্যের উত্থানের সূচনা করছি। তিনি বলেন, আজ আমরা এখানে জড়ো হয়েছি ইতিহাস বদলে দিতে। ইসরায়েলের প্রধানমন্ত্রী বেনজামিন নেতানিয়াহু ওই চুক্তিকে স্বাগত জানিয়ে বলেন, এই দিনটি ইতিহাস পরিবর্তনের ক্ষণ, শান্তির নতুন দিগন্তের সূচনা। তবে ফিলিস্তিনি নেতা মাহমুদ আব্বাস বলেছেন, অধিকৃত অঞ্চল থেকে ইসরায়েল সরে গেলেই কেবলমাত্র মধ্যপ্রাচ্যে শান্তি প্রতিষ্ঠা সম্ভব। ওই চুক্তি স্বাক্ষরের পর মাহমুদ আব্বাস বলেন, ইসরায়েলের অধিগ্রহণের সমাপ্তি না হলে ঐ অঞ্চলে শান্তি, নিরাপত্তা এবং স্থিতিশীলতা ফিরবে না। আরব আমিরাত ও বাহরাইনের আগে মধ্যপ্রাচ্যের দেশগুলোর মধ্যে আনুষ্ঠানিকভাবে ইসরায়েলকে স্বীকৃতি দেয়া দেশ ছিল শুধুমাত্র মিসর ও জর্ডান। তারা যথাক্রমে ১৯৭৮ এবং ১৯৯৪ সালে ইসরায়েলের সঙ্গে শান্তি চুক্তি করেছিল। উত্তর-পশ্চিম আফ্রিকায় আরব লীগের সদস্য মৌরিতানিয়া ১৯৯৯ সালে ইসরায়েলের সঙ্গে কূটনৈতিক সম্পর্ক স্থাপন করলেও ২০১০ সালে সম্পর্কচ্ছেদ করে। এখন দেখার বিষয় হচ্ছে উপসাগরীয় অঞ্চলের অন্যান্য দেশ, বিশেষ করে সৌদি আরব এখন আরব আমিরাত ও বাহরাইনের পদাঙ্ক অনুসরণ করে কি না। সম্প্রতি সৌদি ইঙ্গিত দিয়েছে যে, তারা এ ধরণের কোনো চুক্তি করতে প্রস্তুত নয়। এই চুক্তির ফলে মধ্যপ্রাচ্যের দেশগুলোর মধ্যে হওয়া পারস্পরিক সম্পর্কের জের ধরে ঐ অঞ্চলের নিরাপত্তা পরিস্থিতির ভারসাম্যেও পরিবর্তন আসতে পারে। ইসরায়েলের পাশাপাশি বেশকিছু আরব রাষ্ট্রেরও ইরানের সঙ্গে সম্পর্ক ভালো নয়। আরব দেশগুলোর মধ্যে বহু বছরের ঐকমত্য ছিল যে, ইসরায়েলের সঙ্গে স্বাভাবিক সম্পর্ক একমাত্র ফিলিস্তিনের স্বাধীনতার মাধ্যমেই সম্ভব। ফিলিস্তিনিরা বলছে, নতুন এই চুক্তির ফলে উপসাগরীয় দেশগুলো ওই প্রতিজ্ঞা ভঙ্গ করেছে।

 

 

ঢাকা-৫ আসনের প্রার্থীদের সঙ্গে রোববার বসবে ইসি

ঢাকা অফিস ॥ ঢাকা-৫ সংসদীয় আসনের উপনির্বাচনের প্রার্থীদের সঙ্গে মতবিনিময় করবে নির্বাচন কমিশন (ইসি)। আগামী রোববার সকাল সাড়ে ১০টায় রাজধানীর আগারগাঁয়ের নির্বাচন প্রশিক্ষণ ইন্সস্টিটিউটের সম্মেলন কক্ষে এই বৈঠক অনুষ্ঠিত হবে। এ সময় প্রার্থীদের করোনা পরিস্থিতিতে নির্বাচনি আচরণবিধি সম্পর্কে জানানো হবে। ঢাকা-৫ সংসদীয় আসনের উপনির্বাচনের রির্টানিং কর্মকর্তা জি এম মোতাহার উদ্দিন স্বাক্ষরিত চিঠিতে এই তথ্য জানা গেছে। সাধারণত উপনির্বাচনের ক্ষেত্রে কমিশন প্রার্থীদের সঙ্গে মতবিনিয়োগ করে না। তবে করোনা সংক্রমণকালে নির্বাচন অনুষ্ঠানের জন্য তারা মতবিনিময়ের সিদ্ধান্ত নিয়েছে। এ ক্ষেত্রে নির্বাচনি প্রচারণায় স্বাস্থ্যবিধি অনুসরণসহ বাড়ি বাড়ি গিয়ে প্রচার না করার জন্য প্রার্থীদের অনুরোধ করা হতে পারে। ইসির তফসিল অনুযায়ী ঢাকা-৫ ও নওগাঁ -৬  সংসদীয় আসনে আগামী ১৭ অক্টোবর ভোট হবে। এই আসনগুলোতে মনোনয়নপত্র দাখিলের শেষ দিন ১৭ সেপ্টেম্বর, মনোনয়নপত্র যাচাই-বাছাই ২০ সেপ্টেম্বর, মনোনয়নপত্র প্রত্যাহারের শেষ দিন ২৭ সেপ্টেম্বর ও প্রতীক বরাদ্দ ২৮ সেপ্টেম্বর। এর আগে ৬ মে বার্ধক্যজনিত কারণে সংসদ সদস্য হাবিবুর রহমান মোল্লা মারা গেলে ঢাকা-৫ আসনটি শূন্য হয়। গত ২৭ জুলাই নওগাঁ-৬ আসনে আওয়ামী লীগ থেকে নির্বাচিত সংসদ সদস্য ইসরাফিল আলম করোনা আক্রান্ত হয়ে মারা যান। ফলে এ আসনটিও শূন্য হয়।

 

অনলাইনে মিলবে টিসিবির ৩০ টাকার পেঁয়াজ

ঢাকা অফিস ॥ দেশে পেঁয়াজের বাজার হঠা অস্থির হয়ে ওঠায় ই-কমার্স সাইটের মাধ্যমে অনলাইনে টিসিবির পেঁয়াজ বিক্রির কথা চিন্তা করছে সরকার। গতকাল বুধবার বাণিজ্য মন্ত্রণালয়ের সম্মেলনকক্ষে পেঁয়াজসহ নিত্যপ্রয়োজনীয় পণ্য মজুদ, সরবরাহ ও মূল্য পরিস্থিতি নিয়ে আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে বাণিজ্যমন্ত্রী টিপু মুনশি একথা জানান। এসময় বাণিজ্য সচিব ড. জাফর উদ্দিন, অতিরিক্ত সচিব ওবায়দুল আজম, অতিরিক্ত সচিব শরিফা খান উপস্থিত ছিলেন। মন্ত্রী বলেন, টিসিবি কখনো বছরে ১০ থেকে ১২ হাজার মেট্রিক টনের বেশি পেঁয়াজ আনে না। তিন-চার মাস তারা দুই হাজার তিন হাজার টন করে বিক্রি করে। এবার আমরা আগে থেকেই চিন্তা করেছিলাম ৩০ থেকে ৪০ হাজার টন আনবো। ভারত পেঁয়াজ রপ্তানি বন্ধ করে দেওয়াই আমরা ভাবছি টিসিবির মধ্যমেই আমরা এক লাখ টন পেঁয়াজ আমদানি করবো। ’ তিনি বলেন, জনবল সংকটে টিসিবি একাই এসব পেঁয়াজ বিক্রি করতে পারবে না। তাই আমরা ই-কর্মাস প্রতিষ্ঠানগুলোকে ব্যবহার করে পেঁয়াজ বিক্রি করবো। আমরা খুব আশাবাদী যে, মাসে অন্তত ১০ থেকে ১২ হাজার টন পেঁয়াজ ই-কমার্সের মাধ্যমে সাশ্রয়ী মূল্যে বিক্রি করতে পারবো। গতবারও টিসিবির আমদানি করা পেঁয়াজ কিন্তু ডিসিদের মাধ্যমেও বিতরণ করেছি। এবার এসব উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে। বাণিজ্যমন্ত্রী বলেন, ‘গতবার টিসিবির আমদানির বাইরেও বড় বড় ব্যবসায়ীরা পেঁয়াজ আমদানি করে যে সহযোগিতা করেছিল সেসব পেঁয়াজও ভর্তুকি দিয়ে আমরা বিক্রি করেছিলাম। এ ক্ষেত্রে টিসিবির নিয়ম ভেঙে কিছু নতুন ডিলার নিয়োগ দেওয়া হয়েছিল। এছাড়াও ওএমএসের ডিলাদের মাধ্যমে পেঁয়াজ বিক্রি করা হয়েছিল। এবারও এসব পদ্ধতি অনুসরণ করে পেঁয়াজের বাজার নিয়ন্ত্রণে রাখা হবে। গতবারের অভিজ্ঞতা এবার আমাদের খুব কাজে লাগছে। অন্য দেশ থেকে পেঁয়াজ আমদানির জন্য বড় বড় ব্যবসায়ী গ্রুপের সঙ্গে কথা হয়েছে এবং এবারও তারা সহযোগিতা করার আশ্বাস দিয়েছেন বলেও জানান বাণিজ্যমন্ত্রী। পেঁয়াজের বাজারে অস্থিরতা দেখা দেওয়ায় গত রোববার থেকে ৩০ টাকা কেজিতে পেঁয়াজ বিক্রি করছে ট্রেডিং করপোরেশন অব বাংলাদেশের (টিসিবি)। টিসিবির ট্রাক থেকে একজন ক্রেতা সর্বোচ্চ ২ কেজি পরিমাণ পেঁয়াজ কিনতে পারছেন।

বিজিবি-বিএসএফ সীমান্ত সম্মেলন শুরু

ঢাকা অফিস ॥ বর্ডার গার্ড বাংলাদেশ (বিজিবি) এবং ভারতের বর্ডার সিকিউরিটি ফোর্সের (বিএসএফ) মধ্যে মহাপরিচালক পর্যায়ে সীমান্ত সম্মেলন শুরু হয়েছে। গতকাল বুধবার বেলা পৌনে ১১টায় বিজিবির সদর দফতরের সম্মেলনকক্ষে এ সম্মেলন শুরু হয়। এটি চলবে আগামী ১৯ সেপ্টেম্বর পর্যন্ত। এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে বিষয়টি জানিয়েছে বিজিবি। বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়েছে, সীমান্ত সম্মেলনে বিজিবি মহাপরিচালক মেজর জেনারেল মো. সাফিনুল ইসলামের নেতৃত্বে ১৩ সদস্যের বাংলাদেশ প্রতিনিধিদল অংশ নিচ্ছে। বাংলাদেশ প্রতিনিধিদলে বিজিবির অতিরিক্ত মহাপরিচালকেরা ও বিজিবি সদর দফতরের সংশ্লিষ্ট স্টাফ কর্মকর্তা ছাড়াও প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়, স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়, পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়, যৌথ নদী কমিশন এবং ভূমি রেকর্ড ও জরিপ অধিদফতরের সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তারা প্রতিনিধিত্ব করছেন। সম্মেলনে বিএসএফের মহাপরিচালক রাকেশ আস্থানার নেতৃত্বে ছয় সদস্যের ভারতীয় প্রতিনিধিদল অংশগ্রহণ করেছে। ভারতীয় প্রতিনিধিদলে বিএসএফ সদর দফতরের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তা এবং ভারতের স্বরাষ্ট্র ও পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের কর্মকর্তারা রয়েছেন। আগামী ১৯ সেপ্টেম্বর সকাল সাড়ে আটটায় সম্মেলনের যৌথ আলোচনার দলিল স্বাক্ষরের মধ্য দিয়ে সীমান্ত সম্মেলন শেষে বিএসএফ প্রতিনিধিদল ঢাকা ত্যাগ করবে। এর আগে বিমানে ত্রুটির কারণে নির্ধারিত সময়ে বাংলাদেশে আসতে পারেনি ভারতের বর্ডার সিকিউরিটি ফোর্সের (বিএসএফ) প্রতিনিধিদল। এ কারণে গত ১৩ থেকে ১৮ সেপ্টেম্বর পর্যন্ত আয়োজিত সম্মেলন স্থগিত করা হয়। পরবর্তীতে সম্মেলনের তারিখ পরিবর্তন করে ১৬ থেকে ১৯ সেপ্টেম্বর করা হয়।

মিরপুরে আধিপত্য বিস্তার নিয়ে দু’পক্ষের হামলার প্রস্তুতিকালে দেশীয় অস্ত্রসহ গ্রেফতার ৮ জন

নিজ সংবাদ ॥ কুষ্টিয়ার মিরপুরে দু’পক্ষের আধিপত্য বিস্তার নিয়ে হামলার প্রস্তুতিকালে পুলিশের অভিযান চালিয়ে ৮ জনকে গ্রেফতার করেছে। বুধবার ভোর ৬টায় উপজেলার নওদা খাড়ারা গ্রামে পৃথক দুইটি অভিযান চালিয়ে তাদেরকে আটক করে পুলিশ। এসময় ১০টি সড়কি, দুইটি বেতের তৈরি ঢাল, একটি লোহার তৈরি হাসুয়া, দুইটি ফলা ও এগারটি ফলাযুক্ত টেটা উদ্ধার করেছে পুলিশ।

পুলিশ জানায়, আধিপত্য বিস্তার নিয়ে নওদা খাড়ারা গ্রামে দীর্ঘদিন যাবৎ বিবাদমান আশফাকি আজম বিশু মেম্বর সমর্থিত লোকজন ও শুকুর আলী মালিথার সমর্থিত লোকজনের মধ্যে বিরোধ চলে আসছিল। বিরোধের জের ধরে বুধবার ভোর সাড়ে ৫টার দিকে মারামারির প্রস্তুতির জন্য দেশীয় অস্ত্র-শস্ত্র নিয়ে সজ্জিত হয়ে আশফাকি আজম বিশু মেম্বর সমর্থিত লোকজন তার বাড়িতে এবং শুকুর আলী মালিথার সমর্থিত লোকজন তার বাড়িতে অবস্থান করতে থাকে। এমন সংবাদ পেয়ে ভোর ৬টার দিকে শুকুর আলী মালিথার বসত বাড়িতে অভিযান চালায় পুলিশ। পুলিশের উপস্থিতি টের পেয়ে দৌড়ে পালানোর সময় ৫জনকে আটক করে পুলিশ। এরা হলেন মিরপুর উপজেলার নওদা খাড়ারা গ্রামের মৃত জিন্নাত আলী মালিথার ছেলে শুকুর আলী মালিথা(৫৫), মৃত শাহাদৎ আলী মালিথার ছেলে মোঃ রবিউল মালিথা(৬৬),  মৃত আবেদ আলী মালিথার ছেলে দেলোয়ার হোসেন (৬৭), – শুকুর আলী মালিথার ছেলে সুজন মালিথা(২৮) ও মোফাজ্জেল মালিথার ছেলে আব্দুর রহিম মালিথা(৩৫)। এছাড়া অজ্ঞাতনামা আরো কয়েকজন পালিয়ে যায়।

অপরদিকে এসআই মুন্সী মাফিজুর রহমান নেতৃত্বে সকাল ৬টার দিকে আশফাকী আজম ওরফে বিষু মেম্বারের বাড়িতে অভিযান চালায় পুলিশ। পুলিশের উপস্থিতি টের পেয়ে আশফাকী আজমের বাড়ীর ভিতর থেকে কয়েকজন ব্যক্তি হাতে দেশীয় তৈরি অস্ত্র-শস্ত্র ও ঢাল-লাঠিসহ দৌড়ে পালানোর চেষ্টাকালে ৩জনকে আটক করে পুলিশ। এরা হলেন মিরপুর উপজেলার নওদা খাড়ারা গ্রামের মৃত আব্দুর রহমান বিশ্বাসের ছেলে আশফাকী আজম ওরফে বিষু মেম্বর(৫৫), বিমান গার্ডের ছেলে শাওন আলী (২০) ও মৃত পিয়ার উদ্দিন প্রামানিকের ছেলে কালু প্রামানিক (৩৬)। এছাড়া অজ্ঞাতনামা আরো ৬-৭ জন পালিয়ে যায়। গ্রেফতারকৃতদের নিকট হতে ও পলাতক আসামীদের ফেলে যাওয়া মোট ১০ টি সড়কি ও ০২টি বেতের তৈরি ঢাল, ১ টি লোহার তৈরি হাসুয়া, ২ টি ফলা, এগারটি ফলাযুক্ত ১টি টেটা উদ্ধার করে পুলিশ। পৃথক দুটি অভিযানে বিবাদমান দুটি গ্র“পের সর্বমোট ০৮ জন আসামী গ্রেফতার হয় এবং বিবাদমান দুটি গ্র“পের সদস্যদের নিকট হতে সর্বমোট ৪ টি দেশীয় তৈরি ফলা, ২৬ টি সড়কি, ৫ টি বেতের ঢাল, ১ টি লোহার তৈরি হাসুয়া, এগারটি ফলাযুক্ত ০১টি টেটা উদ্ধার করা হয়। এ ঘটনায় মিরপুর থানায় পৃথক পৃথক মামলা দায়ের হয়েছে।

দৌলতপুর সীমান্তে ফেনসিডিল, মদ ও গাঁজা উদ্ধার

দৌলতপুর প্রতিনিধি ॥ কুষ্টিয়ার দৌলতপুর সীমান্তে বিজিবি’র পৃথক অভিযানে ৮৬ বোতল ফেনসিডিল, ১৪২ বোতল মদ উদ্ধার ও সাড়ে ৬ কেজি গাঁজা হয়েছে। গতকাল বুধবার ভোররাত ও মঙ্গলবার গভীর রাতে উপজেলার বিভিন্ন সীমান্তে অভিযান চালিয়ে এসব মাদক উদ্ধার বর্ডার গার্ড বাংলাদেশ বিজিবি। বিজিবি সূত্র জানায়, মাদক পাচারের গোপন সংবাদ পেয়ে ৪৭ বিজিবি ব্যাটালিয়ন অধিনস্থ জামালপুর বিওপি’র টহল দল গতকাল ভোররাত সাড়ে ৪টার দিকে সীমান্ত সংলগ্ন জামালপুর বাগানপাড়ায় অভিযান চালিয়ে ৪.৫ কেজি গাঁজা উদ্ধার করেছে। একই দিন ভোররাত সাড়ে ৩টার দিকে চরচিলমারী বিওপি’র টহল দল ডিগ্রিরচর মাঠে অভিযান চালিয়ে ৩৫ বোতল জেডি মদ ও ১৫ বোতল ফেনসিডিল উদ্ধার করেছে। অপরদিকে মঙ্গলবার রাত পৌনে ১২টার দিকে জয়পুর বিওপি’র টহল দল বিলগাথুয়া মাঠে অভিযান চালিয়ে ৭১ বোতল ফেনসিডিল উদ্ধার করেছে। একইদিন রাত ১০টার দিকে রামকৃষ্ণপুর বিওপি’র টহল দল কান্দিরপাড়া মাঠে অভিযান চালিয়ে ৩৯ বোতল জেডি মদ উদ্ধার করেছে। এছাড়াও মঙ্গলবার রাত পৌনে ৯টার দিকে মহিষকুন্ডি বিওপি’র টহল দল হাতিশালা মাঠে অভিযান চালিয়ে ৬৮ বোতল বেষ্ট টেষ্টি মদ ও ২ কেজি গাঁজা উদ্ধার করেছে। তবে উদ্ধার হওয়া এসব মাদকের সাথে জড়িত কেউ আটক হয়নি বলে বিজিবি সূত্র জানিয়েছে।

কুষ্টিয়া জেলা ছাত্রলীগের কমিটি বিলুপ্ত

নিজ সংবাদ ॥ কুষ্টিয়া জেলা ছাত্রলীগের কমিটি বিলুপ্ত করা হয়েছে। গতকাল বুধবার দুপুরে সংগঠনটির কেন্দ্রীয় নির্বাহী সংসদের সভাপতি আল-নাহিয়ান খান ও সাধারণ সম্পাদক লেখক ভট্টাচার্য স্বাক্ষরিত এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য জানানো হয়। লেখক ভট্টাচার্য তাঁর ফেসবুক আইডিতে সংবাদ বিজ্ঞপ্তিটি পোস্ট করেন। এতে লেখা রয়েছে, ‘বাংলাদেশ ছাত্রলীগ কেন্দ্রীয় নির্বাহী সংসদের এক জরুরি সিদ্ধান্ত মোতাবেক জানানো যাচ্ছে যে, মেয়াদোত্তীর্ণ হওয়ায় ছাত্রলীগ কুষ্টিয়া জেলা শাখা কমিটি বিলুপ্ত ঘোষণা করা হলো।’ এ ব্যাপারে যোগাযোগ করা হলে মুঠোফোনে লেখক ভট্টাচার্য বলেন, ‘প্রস্তুতি গ্রহণ করা হচ্ছে। একটা সম্মেলন করে নতুন কমিটি গঠন করা হবে।’ কমিটি বিলুপ্ত ঘোষণার পর থেকে পদপ্রত্যাশী নেতা-কর্মীরা সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে সরব হয়ে উঠেছেন। অনেকে তাঁদের পছন্দের নেতা-কর্মীকে শীর্ষ পদে  দেখতে চেয়ে দোয়া কামনা করছেন। সদর উপজেলা ছাত্রলীগ, কলেজ ছাত্রলীগ ও দীর্ঘদিন ধরে তৃণমূলে কাজ করা নেতাদের অনুসারীরা প্রচারণা চালাতে শুরু করেছেন।

স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, ২০১৬ সালের ১৪ নভেম্বর ইয়াসির আরাফাতকে (তুষার) সভাপতি ও সাদ আহমেদকে সাধারণ সম্পাদক করে কমিটি গঠন করা হয়। দুই বছর মেয়াদি কমিটি প্রায় চার বছর পর বিলুপ্ত ঘোষণা করা হয়। বিদায়ী সভাপতি ইয়াসির আরাফাত তুষার বলেন, জেলা ও উপজেলাসহ কলেজ শাখা কমিটি সুসংগঠিত করা হয়েছে। আশা করা যাচ্ছে নতুন কমিটি এসে সংগঠনকে আরও সুসংগঠিত করবে।

পেঁয়াজ আমদানিতে ৫ শতাংশ শুল্ক কমানোর বিবেচনা – অর্থমন্ত্রী

ঢাকা অফিস ॥ পেঁয়াজ আমদানিতে পাঁচ শতাংশ আমদানি শুল্ক কমানোর বিষয়টি বিবেচনা করা হবে বলে জানিয়েছেন অর্থমন্ত্রী আ হ ম মুস্তফা কামাল। তিনি বলেন, আমাদের হাতে যেটা আছে। যদি রাজস্ব খাতে কোনো কিছু করার থাকে অবশ্যই ছাড় দেওয়া হবে। অতিতেও বিবেচনা করা হয়েছে এখনও বিবেচনা করা হবে। গতকাল বুধবার অনলাইনে সরকারি ক্রয় সংক্রান্ত মন্ত্রিসভা কমিটির বৈঠক শেষে সাংবাদিকদের এক প্রশ্নের জবাবে তিনি এসব কথা বলেন। ভারত পেঁয়াজ রপ্তানির বন্ধের খবরে দেশের বাজারে পেঁয়াজের দাম বেড়েছে, এ পরিপ্রেক্ষিতে বাণিজ্য মন্ত্রণালয় বিভিন্ন পদক্ষেপ নিয়েছে এনবিআরকে চিঠি দিয়েছে পেঁয়াজের ওপর আমদানি শুল্ক পাঁচ শতাংশ কমানোর জন্য। তারপরও পেঁয়াজের দাম বেড়ে যাচ্ছে জনগণ দুর্ভোগে পড়ছে। এ দুর্ভোগ লাঘবে কি পদক্ষেপ নেবেন জানতে চাইলে অর্থমন্ত্রী বলেন, আমাদের জনগণের দুরদশা বাড়ুক এটা আমরা চাই না। প্রধানমন্ত্রী থেকে শুরু করে আমরা কেউই এ প্রত্যাশা করি না। আমাদের হাতে যেটা আছে। যদি রাজস্ব খাতে কোনো কিছু করার থাকে অবশ্যই ছাড় দেওয়া হবে। অতিতেও বিবেচনা করা হয়েছে এখনও বিবেচনা করা হবে। ব্যবসায়ীদের অসৎ উদ্দেশ্যকে আপনি একজন ব্যবসায়ী হিসেবে কীভাবে দেখবেন এমন প্রশ্নের জবাবে মুস্তফা কামাল বলেন, প্রথমতো আমি ব্যবসায়ী ছিলাম সেটা আপনি কি করে জানলেন। আমি একজন চ্যাটার্ড অ্যাকাউন্ট্যান্ট ছিলাম। পাশাপাশি একটি অডিটফার্মের মালিক সেখানে কাজ করাকে কোনো জাতের ব্যবসা বলবেন। দ্বিতীয় এ মুহূর্ত থেকে গত ১০ বছরে আমার কোন ব্যবসা আপনার নজরে পড়েছে। এ তথ্য কোথায় পেলেন। আমি ব্যবসায়ী ছিলাম এখনো ব্যবসা থাকতে পারি? আমি এখন মন্ত্রী, মন্ত্রী হলে ব্যবসা করতে পারে না। এটা ইলিগ্যাল। আর আমি ব্যবসা করিও না। ভালোভাবে আপনারা সবাই জানেন। আমি সব কিছু বিক্রি করে বহু আগেই পরিষ্কার। অসাধু ব্যবসায়ীদের জন্য কি ব্যবস্থা নেবেন জানতে চাইলে অর্থমন্ত্রী বলেন, আমার একটু অংশ ছিল। যদি কোনো কারণে রাজস্ব বাড়িয়ে দেই। সে কারণে যদি দাম বাড়ে সেটার জন্য অর্থ মন্ত্রণালয় দায়ী। আর বাকি অংশ বাণিজ্য মন্ত্রণালয়ের কাজ। আমার মনে হয় বাণিজ্য মন্ত্রণালয় এ বিষয়ে দেখাশুনা করছে। অতীতেও সমস্যা হয়েছিল পড়ে তা সমাধান হয়েছে। আর ব্যবসায়ীদের উদ্দেশ্যে আমার কিছু বলা লাগবে না। এখন যে আলোচনা হয়েছে তাই পরিষ্কার মেসেজ। এডিবি নিয়ে এক প্রশ্নের জবাবে অর্থমন্ত্রী বলেন, এডিবি তো সারা বছরই কাজ করে। আর আমরা করি বছরে একবার। তারা বছরে একাধিকবার করে। তারা আমাদের সম্পর্কে খারাপ বলেনি ভালোই বলেছে। আমরা কাজ শুরু করেছি। তারা বলেছে আমাদের জিডিপির প্রবৃদ্ধি ছয় দশমিক আট হবে। এডিবি তাদের ওভারভিউতে বলেছে, বাংলাদেশ ধীরে হলেও শুরু করেছে। আমরা ধীরে হলেও এগিয়ে যাচ্ছি। আমাদের যেতে হবে অনেক দূর। সবাইকে সঙ্গে নিয়ে আমরা সে কাজটি করবো। আমরা পাঁচ দশমিক দুই গতবছর বলেছিলাম। সেটা আমরা পাঁচ দশমিক ২৪ অর্জন করেছি। এবছর আমাদের আশা গতবছর আমরা যেটা করতে পারিনি আট দশমিক দুই শতাংশ। তবে এবছর আমাদের আশা বাজেটে যে প্রক্ষাপণ করা হয়েছে সেটা অর্জন করতে পারবো।  সেস্বপ্ন পূরণ করতে আমরা কাজ করছি। দেশের সব মানুষ তাদের সব কিছু উজার করে দিয়ে এ দেশের উন্নয়নে কাজ করে যাচ্ছে। আমরা ছয় দশমিক আট শতাংশ জিডিপির প্রবৃদ্ধি যদি করতে পারি তাহলে আমরা সাউথ এশিয়া না সাউথ ইস্ট এশিয়ার সব দেশের মধ্যে আমরা তিন নম্বরে থাকবো। আর গত বছর যেটা ছিল পাঁচ দশমিক ২৪ সেটাও এ অঞ্চলের মধ্যে সবার উপরে। এখন এবছরও ছয় দশমিক আট সেটা বিবেচনা করেন তাহলে আমাদের উপরে থাকে মাত্র ভারত আর চীন। আমি মনে করি আমরা ভালোভাবে এগুচ্ছি। এটি আমাদের জন্য কম অর্জন নয়।

ড্রোন ওড়ানোর নীতিমালা স্পষ্ট করলো মন্ত্রণালয়

ঢাকা অফিস ॥ ড্রোন উড্ডয়ন কার্যক্রম সমন্বয় ও নিয়ন্ত্রণের জন্য গত ১৪ সেপ্টেম্বর মন্ত্রিসভায় ‘ড্রোন নিবন্ধন ও উড্ডয়ন নীতিমালা ২০২০’ অনুমোদিত হয়েছে। নীতিমালার বিষয়ে বিভিন্ন সংবাদমাধ্যমে ড্রোন উড্ডয়ন নিয়ে খবর প্রচারিত হওয়ার বিষয়ে ব্যাখ্যা দিয়েছে বেসামরিক বিমান পরিবহন ও পর্যটন মন্ত্রণালয়। গতকাল বুধবার দুপুরে দেয়া এক বিজ্ঞপ্তিতে মন্ত্রণালয় জানায়, নীতিমালা নিয়ে বিভিন্ন গণমাধ্যমে প্রকাশিত খবরে কিছু তথ্যগত ভুল থাকায় তা নিয়ে বিভ্রান্তি সৃষ্টির অবকাশ রয়েছে। এ বিষয়ে বেসামরিক বিমান পরিবহন ও পর্যটন মন্ত্রণালয়ের মতামত দেয়া হলো। ১. ‘ড্রোন নিবন্ধন ও উড্ডয়ন নীতিমালা ২০২০’ মন্ত্রিসভায় অনুমোদিত হয়েছে কিন্তু তা গেজেট আকারে এখনো প্রকাশিত হয়নি। নীতিমালার গেজেট প্রকাশিত না হওয়া পর্যন্ত এবং এ বিষয়ে সংশ্লিষ্ট মন্ত্রণালয়, দফতর/সংস্থার প্রস্তুতি গ্রহণের পূর্বে এ নীতিমালার আওতায় কোনো ব্যক্তি/সংস্থা ড্রোন নিবন্ধন ও উড্ডয়ন করতে পারবে না। ২. কোনো কোনো পত্রিকায় ‘ক’ শ্রেণির ড্রোন ৫০০ ফুট উচ্চতায় উড্ডয়নের যে তথ্য প্রদান করা হয়েছে তা ভুল। নীতিমালা অনুযায়ী ‘ক’ শ্রেণির ড্রোন হচ্ছে বিনোদনের কাজে ব্যবহৃত ড্রোন। এ শ্রেণির ড্রোন বিমানবন্দর/কেপিআইয়ের ৩ কিলোমিটারের মধ্যে উড্ডয়ন করতে পারবে না। তবে ৩-৫ কিলোমিটার পর্যন্ত ৫০ ফুট উচ্চতায় এবং ৫ কেজির কম ওজনের ড্রোন উড্ডয়ন করতে পারবে। বিমানবন্দর/কেপিআইয়ের ৫ কিলোমিটারের বাইরে ১০০ ফুটের বেশি উচ্চতায় এবং ৫ কেজির বেশি ওজনের ড্রোন নিবন্ধন ও অনুমতি ছাড়া উড্ডয়ন করা যাবে না। ৩. ৫০ থেকে ১০০ ফুটের বেশি উচ্চতায় উড্ডয়ন করতে সক্ষম এবং ড্রোনের ওজন ৫ কেজির বেশি হলে ‘ঘ’ ব্যতীত যে কোনো শ্রেণির ড্রোন উড্ডয়নের জন্য বাংলাদেশ বেসামরিক বিমান চলাচল কর্তৃপক্ষ হতে নিবন্ধন এবং অনুমতি গ্রহণের প্রয়োজন হবে। ৪. এ বিষয়ে কোনো তথ্যের প্রয়োজন হলে বেসামরিক বিমান পরিবহন ও পর্যটন মন্ত্রণালয়ের সিভিল এভিয়েশন অনুবিভাগে যোগাযোগ করার জন্য অনুরোধ করা যাচ্ছে।

কুষ্টিয়ায় ‘আমার বাড়ি, আমার খামার প্রকল্প’ ও পল্লী সঞ্চয় ব্যাংকের উপকারভোগীদের সাথে মতবিনিময় সভায় আসলাম হোসেন

স্বাবলম্বী হওয়ার জন্য নিজের ইচ্ছে শক্তিই  প্রধান

নিজ সংবাদ ॥ কুষ্টিয়ার জেলা প্রশাসক মো. আসলাম হোসেন বলেছেন- সন্তানকে লেখাপড়ার জন্য নারীকে স্বাবলম্বী হতে হবে। আর নারীকে স্বাবলম্বী হওয়ার জন্য নিজের ইচ্ছে শক্তিই  সবচেয়ে বড় বিষয়। গতকাল বুধবার সকালে কুষ্টিয়া সদর উপজেলা পরিষদ মিলনায়তনে ‘আমার বাড়ি, আমার খামার প্রকল্প’ ও পল্লী সঞ্চয় ব্যাংক এর উপকারভোগী সদস্যদের নিয়ে মতবিনিময় সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন।

অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (সার্বিক) লুৎফুন নাহারের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি ছিলেন সদর উপজেলা চেয়ারম্যান আতাউর রহমান, সদর উপজেলা নির্বাহী অফিসার জুবায়ের হোসেন চৌধুরী, বিআরডিবি কুষ্টিয়ার উপ-পরিচালক আবু আফজাল মোহাঃ সালেহ। স্বাগত বক্তব্য রাখেন তরুন কুমার রায়, বাদল জোয়ার্দার, নাছিমা বেগম।

অনুষ্ঠানে এই প্রকল্পের জেলা সমন্বয়কারী তানিয়া আফরিন প্রকল্পের বিভিন্ন তথ্য তুলে ধরেন। প্রধান অতিথির বক্তব্যে জেলা প্রশাসক বলেন- মহিলাদের আর্থিকভাবে লাভবান করে স্বাবলম্বী করে তোলার লক্ষে এই প্রকল্পটি চালু করা হয়েছে। সরকারের সদিচ্ছায় এই প্রকল্পটি দেশের বড় একটি অংশের মানুষ উপকৃত হচ্ছে। তিনি আরো বলেন, সন্তানদের শিক্ষিত করে তোলার পিছনে মায়েদের ভূমিকা অগ্রভাগে তাই মায়েদের অর্থনৈতিকভাবে স্বাবলম্বী হওয়ার ক্ষেত্রে এই প্রকল্পটি আলোকবর্তিতা হিসেবে কাজ করছে। জেলা প্রশাসক বলেন, কিছু করার জন্য মানুষের ইচ্ছে শক্তি প্রধান ভূমিকা রাখে। নিজের ইচ্ছে শক্তিকে প্রবল করে যে কোন কাজ করলে তা সফলতার দিকে ধাবিত হবেই। তিনি বলেন, মানষিক শক্তিকে কাজে লাগাতে হবে। ঋণের টাকা নিয়ে উৎপাদনশীল কোন কাজ করতে না পারলে আপনি ঠকবেন আবার অনেকে সর্বশান্ত হয়েছে তাই ভাল চিন্তা করে লেগে থাকলে ভাল ফলাফল আসবে। তিনি আরো বলেন, আপনারা এক একটি পরিবারকে একটি করে খামারে পরিনত করুন-নিজেরা কঠোর পরিশ্রমে আর্থিকভাবে লাভবান হলে দেশ উপকৃত হবে। প্রত্যেক মানুষকে স্বাবলম্বী  ও শিক্ষিত হতে হবে তবেই দেশ ২০৪১ সালে উন্নত দেশ হিসেবে পরিচিতি পাবে। পরে এই প্রকল্পের আওতায় ৫ জনকে ঋণের নগদ টাকা বিতরণ করা হয়। অনুষ্ঠানে পরিচালনা করেন প্রকল্পের কুমারখালী উপজেলা সমন্বয়কারী সেলিম আহমেদ।