আরও ১০ জোড়া ট্রেন চালু

ঢাকা অফিস ॥ করোনাভাইরাসের কারণে প্রায় সাড়ে পাঁচ মাস বন্ধ থাকার পর আরও ১০ জোড়া ট্রেন চালু হয়েছে। গতকাল রোববার সকাল থেকে বিভিন্ন গন্তব্যে এ ট্রেন চলাচল শুরু হয়। আগে থেকে ৩০ জোড়া ট্রেন চলাচল করছে। পর্যায়ক্রমে সব রুটের যাত্রীবাহী আন্তঃনগর ট্রেন চালু করার সিদ্ধান্ত নিয়েছে রেলওয়ে। আগামী ১৬ সেপ্টেম্বর তৃতীয় ধাপে নতুন করে চলাচলের জন্য নামবে আরও ১৮ জোড়া যাত্রীবাহী ট্রেন। রোববার সকাল থেকে ঢাকা এবং ঢাকার বাইরে বিভিন্ন রুটে কমিউটার, মেইল, এক্সপ্রেস এবং লোকাল ট্রেন চলাচল শুরু হয়েছে। গতকাল রোববার থেকে যে ১০ জোড়া ট্রেন চলাচল শুরু হয়েছে, সেগুলো হলো- চট্টগ্রাম-সিলেট-চট্টগ্রাম রুটে জালালাবাদ এক্সপ্রেস, ঢাকা-সিলেট-ঢাকা রুটে সুরমা মেইল, নোয়াখালীর-ঢাকা-নোয়াখালী রুটে ঢাকা/নোয়াখালী এক্সপ্রেস, চট্টগ্রাম-বঙ্গবন্ধু সেতু পূর্ব-চট্টগ্রাম রুটে ময়মনসিংহ এক্সপ্রেস, ঢাকা-দেওয়ানগঞ্জ বাজার-ঢাকা রুটে ভাওয়াল এক্সপ্রেস, ময়মনসিংহ-বঙ্গবন্ধু সেতু পূর্ব -ময়মনসিংহ রুটে ধলেশ্বরী এক্সপ্রেস, চাঁদপুর-লাকসাম-চাঁদপুর রুটে চাঁদপুর কমিউটার, নোয়াখালী-লাকসাম-নোয়াখালীর রুটে নোয়াখালী কমিউটার। করোনার বিস্তার রোধে গত ২৪ মার্চ ট্রেন চলাচল বন্ধ করা হয়। সেদিন থেকে বন্ধ হয় কাউন্টারে টিকিট বিক্রিও। ৬৮ দিন পর ৩১ মে সীমিত পরিসরে ট্রেন চালু হলেও শতভাগ টিকিট অনলাইনে বিক্রি করছিল রেলওয়ে। সংস্থাটির সিদ্ধান্ত ছিল, করোনা পরিস্থিতি স্বাভাবিক হলেও আন্তঃনগর ট্রেনের টিকিট আর কখনোই কাউন্টারে দেওয়া হবে না। দেশের সাত কোটিরও বেশি মানুষ ইন্টারনেট ব্যবহারকারী নন; এমন বাস্তবতায় শতভাগ টিকিট অনলাইনে বিক্রির সিদ্ধান্ত সমালোচনার মুখে পড়ে। আন্তঃনগরের টিকিট বিক্রিতে তাই গত শনিবার থেকে আগের নিয়মে ফিরেছে রেলওয়ে। অর্ধেক টিকিট ওয়েব সাইট ও অ্যাপে দেওয়া হচ্ছে। বাকি অর্ধেক দেওয়া হচ্ছে কাউন্টারে। তবে করোনার কারণে ট্রেনের অর্ধেক আসন খালি রাখায়, আদতে ইন্টারনেটে ২৫ ভাগ এবং বাকি ২৫ শতাংশ কাউন্টারে বিক্রি করা হচ্ছে।

 

২০২২ সালের মধ্যে শেষ হবে রেলের ডাবল লাইনের কাজ – রেলমন্ত্রী

ঢাকা অফিস ॥ রেলমন্ত্রী নুরুল ইসলাম সুজন বলেছেন, আগামী ২০২২ সালের মধ্যে ডাবল রেল লাইন নির্মাণের কাজ শেষ হবে। এ সময়ের আগে নির্মাণকাজ শেষ হওয়ার কথা থাকলেও বৈশ্বিক মহামারি করোনার কারণে থমকে যায় কাজের গতি। গতকাল রোববার দুপুরে ব্রাহ্মণবাড়িয়ার কসবায় রেল স্টেশনে নির্মাণাধীন লাইনের কাজ পরিদর্শনকালে সাংবাদিকদের সঙ্গে এসব কথা বলেন।  মন্ত্রী আরো বলেন, সরকারের নির্দেশানা মোতাবেক স্বাস্থ্যবিধি মেনে ট্রেনে যাত্রীরা যাতে চলাচল করতে পারে সেদিকে আমাদের নজরদারী রয়েছে। এছাড়াও সকলকে স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলার আহ্বান জানান ও কসবা স্টেশনে মহানগর প্রভাতী ট্রেন থামার বিষয়ে আশ্বাস দেন মন্ত্রী। এসময় রেলওয়ে পূর্বাঞ্চলীয় পরিচালক (চট্রগ্রাম) সর্দার শাহাদাত হোসেন, রেলওয়ে এডিজি-আই ধীরেন্দ্রনাথ মুজুমদার, প্রজেক্ট চিফ আমিরুল ইলমাম, তমা গ্রুপ পরিচালক আবুল কাসেম, কসবা উপজেলা চেয়ারম্যান অ্যাডভোকেট রাশেদুল কাওসার ভূইয়া জীবন, উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মাসুদ উল আলম, সহকারী পুলিশ সুপার মো. মিজানুর রহমান, কসবা পৌর মেয়র মো. এমরান উদ্দিনসহ অনেকে উপস্থিত ছিলেন। পরে মন্ত্রী পাশ্ববর্তী উপজেলা আখাউড়ায় নির্মাণাধীন লাইনের কাজ পরিদর্শনে যান।

উন্নতি হলেও ওয়াহিদা ‘শতভাগ শঙ্কামুক্ত’ নন – চিকিতসক

ঢাকা অফিস ॥ দিনাজপুরের ঘোড়াঘাটের উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) ওয়াহিদা খানম ধীরে ধীরে সুস্থ হয়ে উঠলেও এখনও তাকে ‘শতভাগ শঙ্কামুক্ত’ বলার অবস্থা আসেনি বলে জানিয়েছেন একজন চিকিৎসক। ঢাকার ন্যাশনাল ইনস্টিটিউট অব নিউরোসায়েন্স ও হাসপাতালের সহকারী অধ্যাপক ও ক্রিটিক্যাল কেয়ার মেডিসিন বিভাগের বিভাগীয় প্রধান ডা. মো. সিরাজুল ইসলাম গতকাল রোববার ইউএনওর ওয়াহিদার সর্বশেষ অবস্থা সাংবাদিকদের জানান। তিনি বলেন, রোগীর পালস, ব্লাড প্রেসার ও অক্সিজেন স্যাচুরেশন স্বাভাবিক আছে। কনশাসনেসও স্বাভাবিক। ধীরে ধীরে সুস্থ হলেও শতভাগ শঙ্কামুক্ত বলার সময় হয়নি এখনও। এই চিকিৎসক জানান, ওয়াহিদার ডান হাত ও ডান পা অবশ হয়ে গিয়েছিল। এর মধ্যে ডান হাতের দুর্বলতা আস্তে আস্তে কেটে যাচ্ছে। এখন আঙুল নাড়াতে পারছেন, কনুই ভাঁজ করতে পারছেন। কিন্তু শোল্ডার উঠাতে পারেন না। তাতে অবস্থার উন্নতির বিষয়টি স্পষ্ট হচ্ছে জানিয়ে ডা. সিরাজুল বলেন, যেখানে জিরো ছিল, সেখানে আস্তে আস্তে উন্নতির দিকে যাচ্ছে। তবে পায়ে এখনো শক্তি ফেরেনি। মেডিকেল বোর্ডের সিদ্ধান্ত অনুযায়ী চিকিৎসার পাশাপাশি ওয়াহিদাকে ফিজিওথেরাপি দেওয়া হচ্ছে বলে জানান ডা. সিরাজুল।  গত ২ সেপ্টেম্বর রাতে ঘোড়াঘাট উপজেলা পরিষদ চত্বরের ইউএনওর সরকারি বাসভবনে ঢুকে ওয়াহিদা খানম ও তার বাবা ওমর আলীর ওপর হামলা হয়। হাতুড়ি আঘাতে আহত বাবা-মেয়েকে প্রথমে রংপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নেওয়া হয়। পরে ইউএনও ওয়াহিদাকে ঢাকায় ন্যাশনাল ইনস্টিটিউট অব নিউরোসায়েন্স ও হাসপাতালে এনে অস্ত্রোপচার করা হয়। শারীরিক অবস্থার কিছুটা উন্নতি হলে ৭ সেপ্টেম্বর ইউএনও ওয়াহিদা খানমকে নিবিড় পরিচর্যা কেন্দ্র (আইসিইউ) থেকে হাই ডিপেনডেন্সি ইউনিটে (এইচডিইউ) স্থানান্তর করা হয়। ডা. সিরাজুল বলেন, “তাকে অবজারভেশনে রাখা হয়েছে। সেখানে আরও দুই-তিন দিন রেখে পরে বোর্ডের সিদ্ধান্ত অনুযায়ী কেবিনে নেওয়ার কথা ভাবা হবে। ওয়াহিদার বাবা ওমর আলী এতদিন রংপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন ছিলেন। সেখান থেকে অ্যাম্বুলেন্স করে গতকাল রোববার সকাল ৯টার দিকে তাকেও ঢাকায় নিউরোসায়েন্স হাসপাতালে নিয়ে আসা হয়। রংপুর মেডিকেলের চিকিৎসকরা বলেছেন, ৭০ বছর বয়সী ওমর আলী ডায়াবেটিসের রোগী। হামলায় তিনি ঘাড়ে আঘাত পান। স্পাইনাল কর্ডে জখম হওয়ায় তার শরীরের নিচের অংশ অবশ হয়ে গেছে। এ ধরনের সমস্যা থেকে সেরে উঠতে দুই থেকে তিন মাস সময় লাগে। আপাতত তার অস্ত্রোপচারের প্রয়োজন না হলেও দীর্ঘমেয়াদী চিকিৎসা প্রয়োজন, সে কারণেই ঢাকায় পাঠানো হয়েছে। ওমর আলীর অবস্থা জানতে চাইলে ডা. মো. সিরাজুল ইসলাম বলেন, “উনার অবস্থা আগের মতই। পরীক্ষা চলছে, তবে তার জ্ঞান আছে। ঘাড়ের ইনজুরির জন্য শরীরের নিচের অংশ দুর্বল। পরে এ ব্যাপারে বিস্তারিত জানানো হবে।”

পোড়াদহ বাজারে ইসলামী ব্যাংক এর এটিএম বুথ উদ্বোধন

হালসা প্রতিনিধি ॥ কুষ্টিয়ার মিরপুর  উপজেলার পোড়াদহ বাজারে হাইস্কুল মার্কেটের উত্তর দিকে ইসলামী ব্যাংক বাংলাদেশ পোড়াদহ শাখার আওতায় এটিএম বুথের শুভ উদ্বোধন করেন পোড়াদহ শাখার ম্যানেজার মোহাম্মদ গোলাম মাসুদ। বিশেষ অতিথি ছিলেন পোড়াদহ বাজার বনিক সমিতির সাধারন  স্মপাদক নাসিম সাইগল মুন্না, পোড়াদহ ব্যাংক ইসলামী শাখার সেকেন্ড অফিসার আব্দুল্লাহ আল বাকী, ব্যাংক কর্মকর্তা শাহাবুল আলম, জামসের আলী, সামছুল ইসলাম, মার্কেট মালিক হিরা, শাখা কর্মকর্তা মোহাম্মদ গোলাম মাসুদ বলেন ব্যবসা বানিজ্যের প্রসারে এই এটিএম বুথ এই অঞ্চলের মানুষের আধুনিক জীবনের এক নব জীবন সৃষ্টি হবে।

 

জিয়াউর রহমানের সরকার মানেই শান্তির ইতিহাস – রিজভী

ঢাকা অফিস ॥ জিয়াউর রহমানের সরকার মানেই শান্তির ইতিহাস বলে মন্তব্য করেছেন বিএনপির সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী। গতকাল রোববার রাজধানীর নয়া পল্টনে দলের কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে স্বেচ্ছাসেবক দলের সভাপতি প্রয়াত শফিউল বারী বাবু’র আত্মার মাগফিরাত কামনা করে অনুষ্ঠিত এক সভায় রিজভী এসব কথা বলেন। বিচার বহির্ভূত হত্যাকা- আওয়ামী লীগের অলঙ্কার উল্লেখ করে রিজভী বলেন, ‘জিয়াউর রহমানের সরকার মানেই শান্তির ইতিহাস। ছাত্রলীগের ছেলেরা বিকৃত ইতিহাস শুনে টাকা পাচারকারী হয়, ছাত্র হত্যা করে।’ তাদের সুশিক্ষা দিতে পারলে হত্যাকান্ডে জড়িত হতো না বলে মন্তব্য করেন রিজভী। সভায় ঢাকা মহানগর উত্তর স্বেচ্ছাসেবক দলের আয়োজনে দোয়া ও মাদ্রাসার এতিম ছাত্রদের মাঝে পোশাক এবং খাবার বিতরণ করা হয়। এ সময় স্বেচ্ছাসেবক দলের নেতাকর্মীরা উপস্থিত ছিলেন।

হাজরাহাটিতে ড্রাগন ফলের বাগান পরিদর্শন করলেন মিরপুরের এসিল্যান্ড

মিলন আলী ॥ কুষ্টিয়ার মিরপুর উপজেলার সহকারী কমিশনার (ভূমি) রাকিবুল হাসান পোড়াদহ ইউনিয়নের হাজরাহাটি গ্রামের মৃত আহম্মেদ হোসেনের ছেলে আশাদুজ্জামানের দেড় বিঘা জমির ড্রাগন ফলের বাগান পরিদর্শন করেন। পুষ্টিমানে ভরপুর বিদেশী এই ড্রাগন ফলের চাষ করে সাফল্য অর্জন করেছে ইতি মধ্যেই বাংলাদেশের বিভিন্ন প্রান্তিক চাষীরা। প্রধান অতিথি উপজেলার সহকারী কমিশনার ভূমি রাকিবুল হাসান বলেন কৃষকের উন্নতির উপরে দেশের উন্নতি নির্ভর করে। তাই বর্তমান প্রধানমন্ত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন এক খন্ড জমিও যেন অনাবাদী না থাকে। কুষ্টিয়ার সেতু সংস্থার সহযোগীতায় উপজেলা কৃষি অফিসার শ্রী রমেশ ঘোষের সার্বিক দিক নির্দেশনায় হাজরাহাটি সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ের পাশে উদিয়মান চাষী আশাদুল চিনের ড্রাগন ফলের বীজ বপন করেছেন আট মাস আগে। কিছু কিছু গাছে ড্রাগন ফলের ফুল ধরেছে ও অল্প কিছু গাছে ফলও আছে। আগামী ২-৩ মাসের মধ্যেই  স্বাভাবিক ভাবেই ড্রাগন  ফলে ভরপুর হয়ে যাবে কৃষক আশাদুল ইসলামের এই ড্রাগন বাগান। উপস্থিত ছিলেন উপজেলা কৃষি অফিসার শ্রী রমেশ কুমার ঘোষ, পোড়াদহ ইউনিয়ন চেয়ারম্যান আনারুজ্জামান বিশ^াস মজনু, ইউনিয়ন আ.লীগের সভাপতি শহিদুল ইসলাম সবেদ, সাধারন সম্পাদক তৈয়বুর রহমান মন্টু মেম্বর, সেতু কর্মকর্তা শাহিন। অনুষ্ঠান পরিচালনা করেন, কৃষক আশাদুজ্জামান।

স্বাস্থ্যবিধি মেনে দুই মাসের মধ্যে খোলা হতে পারে আবাসিক হল – চবি উপাচার্য

ঢাকা অফিস ॥ স্বাস্থ্যবিধি মেনে আগামী দুই মাসের মধ্যে চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের (চবি) আবাসিক হলগুলো খুলে দেওয়া হতে পারে বলে জানিয়েছেন উপাচার্য অধ্যাপক ড. শিরীণ আখতার। তবে অ্যাকাডেমিক কার্যক্রম কবে নাগাদ শুরু হতে পারে এ বিষয়ে কিছু বলেনননি তিনি।  গতকাল রোববার ৩২ তম সিনেট অধিবেশনে বন ও পরিবেশবিদ্যা ইন্সটিটিউটের অধ্যাপক দানেশ মিয়ার স্বাস্থ্যবিধি মেনে বিশ্ববিদ্যালয় খোলার প্রস্তাবনার জবাবে এই সম্ভাবনার কথা জানিয়েছেন উপাচার্য। অধ্যাপক দানেশ মিয়া তার সিনেট বক্তব্যে বলেন, ‘শিক্ষার্থীদের স্বাস্থ্যের কথা চিন্তা করে বিশ্ববিদ্যালয় বন্ধ দেওয়া হয়েছে। কিন্তু ট্যুরিস্ট স্পটসহ হাট-বাজার সমস্ত কিছুই খোলা রয়েছে। শিক্ষার্থীরা তো সেখানে গিয়েও করোনায় আক্রান্ত হতে পারে। অতএব স্বাস্থ্যবিধি মেনে বিশ্ববিদ্যালয় খুলে দেওয়া হোক।’ জবাবে উপাচার্য অধ্যাপক ড. শিরীণ আখতার বলেন, ‘কোভিড-১৯ মহামারির কারণে বিশ্ববিদ্যালয় বন্ধ দেওয়া হয়েছে। এতে সরকারি নির্দেশনাও রয়েছে। তবে স্বাস্থ্যবিধি মেনে আগামী দুই মাসের মধ্যে বিশ্ববিদ্যালয়ের আবাসিক হলগুলো খুলে দেওয়া হতে পারে।’ সিনেট অধিবেশনে অন্যান্যের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন রেজিস্ট্রার অধ্যাপক ড. এসএম মনিরুল হাসান, প্রক্টর রবিউল হাসান ভুঁইয়া, বিভিন্ন হলের প্রভোস্টসহ সিনেট সদস্যরা। এছাড়াও অনলাইনে যুক্ত হয়েছিলেন সংরক্ষিত আসনের সংসদ সদস্য ওয়াসিকা আয়শা খান, বাংলা একাডেমির পরিচালক কবি হাবিবুল্লাহ সিরাজীসহ অন্য সিনেট সদস্যগণ

গাংনীতে শিক্ষার্থীদের মাঝে সহায়ক উপকরণ বিতরণ

গাংনী প্রতিনিধি ॥ মেহেরপুরের গাংনীতে বিশেষ চাহিদা সম্পন্ন শিক্ষার্থীদের  মাঝে সহায়ক উপকরণ বিতরণ করা হয়েছে। উপকরণের মধ্যে রয়েছে-হুইল চেয়ারসহ অন্যান্য।

গতকাল রোববার সকাল ১১টার দিকে গাংনী উপজেলা পরিষদ সভাকক্ষে আনুষ্ঠানিকভাবে এসব উপকরণ বিতরণ করা হয়। উপজেলা শিক্ষা অফিস বিতরণ অনুষ্ঠানের আয়োজন করে। বিতরণ অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন উপজেলা শিক্ষা অফিসার আলাউদ্দীন। প্রধান অতিথি হিসাবে উপস্থিত থেকে উপকরণ বিতরণ করেন মেহেরপুর-২ (গাংনী) আসনের জাতীয় সংসদ সদস্য মোহাম্মদ সাহিদুজ্জামান খোকন। বিশেষ অতিথি ছিলেন গাংনী উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান ও মেহেরপুর জেলা আ.লীগের সাধারণ সম্পাদক এমএখালেক, উপজেলা পরিষদের ভাইস মহিলা চেয়ারম্যান ফারহানা ইয়াসমিন, গাংনী উপজেলা আ’লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক মনিরুজ্জামান। অনুষ্ঠানের শুরুতে আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়। পরে শিক্ষা উপকরণ বিতরণ করা হয়। আলোচনা সভায় প্রধান অতিথি হিসাবে বক্তব্য রাখেন সংসদ সদস্য মোহাম্মদ সাহিদুজ্জামান খোকন। বিশেষ অতিথি হিসাবে বক্তব্য রাখেন- গাংনী উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান এমএ খালেক, উপজেলা পরিষদের ভাইস মহিলা চেয়ারম্যান ফারহানা ইয়াসমিন, গাংনী উপজেলা আ’লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক মনিরুজ্জামান। গাংনী উপজেলা সহকারী শিক্ষা অফিসার শাহাজাহান আলীর সঞ্চালনায়-অনুষ্ঠানে বক্তব্য রাখেন মেহেরপুর জেলা পরিষদের সদস্য মহাম্মদ আলী, গাংনী উপজেলা সহকারী শিক্ষা অফিসার শামসুজ্জোহা, মুন্দা সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক ও শিক্ষক নেতা গোলাম ফারুক, বালিয়াঘাট সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক ও শিক্ষক নেতা সাহাবুদ্দীন, গাংনী মডেল সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক ও শিক্ষক নেতা পারভেজ সাজ্জাদ রাজা, মাইলমারী সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক দানিছুর রহমান, মহাম্মদপুর সরকারী প্রাথমিক বিদালয়ের প্রধান শিক্ষক ও শিক্ষক নেতা জিয়া মহাম্মদ আহসান মাসুম, গাংনী মহিলা কলেজপাড়া সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক খোরশেদ আলম, চৌগাছা সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সহকারী শিক্ষক রকিবুল ইসলাম প্রমুখ। এসময় উপস্থিত ছিলেন  বিভিন্ন সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক, শিক্ষার্থী ও অভিভাবকবৃন্দ।

সাবেক এমপি বদির বিচার শুরু

ঢাকা অফিস ॥ জ্ঞাত আয় বহির্ভূত সম্পদ অর্জনের অভিযোগে দুদকের মামলায় কক্সবাজারের টেকনাফের সরকার দলীয় সাবেক এমপি আবদুর রহমান বদির বিরুদ্ধে গতকাল রোববার আদালতে চার্জ গঠন হয়েছে। দুপুরে চট্টগ্রাম জেলা ও দায়রা জজ মো. ইসমাল হোসেন বদির বিরুদ্ধে চার্জ গঠন করে আগামী ১৫ অক্টোবর সাক্ষীদের আদালতে হাজির করার নির্দেশ দিয়েছেন। এর মধ্য দিয়ে বদির বিররুদ্ধে দুর্নীতির মামলার আনুষ্ঠানিক বিচার শুরু হলো। দুর্নীতি দমন কমিশনের (দুদক) আইনজীবী সালাউদ্দিন লাবলু বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন। মামলার বিবরণে জানা যায়, ৪৭ লাখ টাকার জ্ঞাত আয় বহির্ভূত ও ৬৭ লাখ টাকার অবৈধ সম্পদ অর্জনের দায়ে ২০০৭ সালের ডিসেম্বরে টেকনাফের সাবেক এমপি আবদুর রহমান বদির বিরুদ্ধে মামলা হয়। নগরীর ডবলমুরিং থানায় বাদী হয়ে মামলা করেন দুদকের সহকারী আইনজীবী আলী আকবর। পরে ২০০৮ সালের জুনে চার্জশিট জমা দেয় দুদক।

মামলা প্রত্যাহারের দাবিতে দৌলতপুরে সাংবাদিকদের বিক্ষোভ সমাবেশ

দৌলতপুর প্রতিনিধি ॥ কুষ্টিয়ার দৌলতপুরে ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনে দায়ের করা মিথ্যা মামলা প্রত্যাহারের দাবিতে সাংবাদিকদের বিক্ষোভ সমাবেশ অনুষ্ঠিত হয়েছে। গতকাল রবিবার বেলা সাড়ে ১১টায় উপজেলা পরিষদ মিলনায়তনে এ বিক্ষোভ সমাবেশ অনুষ্ঠিত হয়। প্রবীণ সাংবাদিক খন্দকার জালাল উদ্দিনের সভাপতিত্বে বিক্ষোভ সমাবেশে বক্তব্য রাখেন, শরীফুল ইসলাম, সাইদুল আনাম ও রনি আহমেদ। স্বাগত বক্তব্য রাখেন, অনলাইন পোর্টাল দৌলতপুর টোয়েন্টিফোরের প্রধান নির্বাহী তাশরিক সঞ্চয়। এসময় দৌলতপুরের সর্বস্তরের সাংবাদিক ও সুশীল সমাজের সুধীজন উপস্থিত ছিলেন। বিক্ষোভ সমাবেশে বক্তারা সাংবাদিক তাশরিক সঞ্চয়সহ সাংবাদিকদের নামে দায়ের করা ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনের মামলা প্রত্যাহারের দাবি জানান। উল্লেখ্য, কুষ্টিয়ার দৌলতপুর উপজেলার পিএম (মরিচা-ফিলিপনগর) কলেজ পরিচালনা কমিটির সদ্য অব্যাহতি পাওয়া সভাপতি এ্যাড. শরীফ উদ্দিন রিমনের বিরুদ্ধে পিএম কলেজের অধ্যক্ষ আব্দুল মান্নানসহ কলেজের সকল শিক্ষক-কর্মচারী সংশ্লিষ্ট বিভিন্ন দপ্তরে অভিযোগ দেন। প্রাপ্ত অভিযোগের ভিত্তিতে দৌলতপুর নিউজ টোয়েন্টিফোর নামে একটি অনলাইন পোর্টালসহ বিভিন্ন গণমাধ্যম সংবাদ প্রকাশ ও প্রচার করে। প্রচারিত ও প্রকাশিত সংবাদের ভিত্তিতে এ্যাড. শরীফ উদ্দিন রিমন তার আপন ভাগ্নে ওয়ালিউল আলম শাওনকে বাদী করে দৌলতপুর নিউজ টোয়েন্টিফোরের প্রধান নির্বাহী তাশরিক সঞ্চয়সহ ৩জনের নামে কুষ্টিয়া সিনিয়র জুডিশিয়াল ম্যাজিষ্ট্রেট আদালতে ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনে (আইসিটি) মামলা করেন। এরই প্রেক্ষিতে দৌলতপুরের সর্বস্তরের সাংবাদিক প্রতিবাদ জানিয়ে বিক্ষোভ সমাবেশ কর্মসূচী পালন করেন। সাংবাদিকদের বিক্ষোভ কর্মসূচী চলাকালে গণসংগীত পরিবেশিত হয়। এ্যাড. শরীফ উদ্দিন রিমনের বিরুদ্ধে সংবাদ প্রকাশের পর জাতীয় বিশ^বিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ পিএম (মরিচা-ফিলিপনগর) কলেজ পরিচালনা কমিটির সভাপতির পদ থেকে অব্যাহতি দেন। এছাড়াও পিএম কলেজের অধ্যক্ষ আব্দুল মান্নানসহ বেশ কয়েকজন সুশীল সমাজের ব্যক্তিগণ এ্যাড. শরীফ উদ্দিন রিমনের বিরুদ্ধে ডিজিটাল নিরাপত্তা আইন ও প্রতারণার মামলাসহ বেশ কয়েটি মামলা করেছেন যার কার্যক্রম চলমান রয়েছে।

রাজবাড়ী সদর উপজেলায় সেনাবাহিনীর উদ্যোগে মুজিব জন্মশতবার্ষিকী উপলক্ষে গর্ভবতী নারীদের বিনামূল্যে চিকিতসা সেবা প্রদান

মহামারী করোনাকালীন এই কঠিন সময়ে প্রান্তিক অঞ্চলের মানুষের কাছে চিকিৎসা  সেবা পৌঁছে দিয়ে তাদের দূর্ভোগ কমানোর লক্ষ্যে মানবতার সেবায় নিয়মিত কার্যক্রম চালিয়ে যাচ্ছেন বাংলাদেশ সেনাবাহিনীর ৫৫ পদাতিক ডিভিশন।  জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জন্ম শতবার্ষিকী উপলক্ষে জিওসি, ৫৫ পদাতিক ডিভিশন ও এরিয়া কমান্ডার, যশোর এরিয়া এর নির্দেশনায় যশোর  সেনানিবাসের সেনাসদস্যরা বিশেষজ্ঞ চিকিৎসকদের সমন্বয়ে বৃহত্তর যশোর অঞ্চলের বিভিন্ন জেলায় অসহায় ও দুস্থ মানুষ এবং গর্ভবতী নারীদের মাঝে বিনামূল্যে চিকিৎসা সেবা ও ঔষধ বিতরণ করে আসছে। এরই ধারাবাহিকতায় গতকাল ১৩  সেপ্টেম্বর ২০২০ (রবিবার) রাজবাড়ী সদর উপজেলায়  সকাল ১১ টা থেকে বিকাল ৩ টা পর্যন্ত সর্বমোট ৫ জন সেনাবাহিনীর বিশেষজ্ঞ ডাক্তার এবং স্থানীয় ডাক্তারের সমন্বয়ে গর্ভবতী নারীদের জন্য একটি অস্থায়ী ফ্রী মেডিক্যাল ক্যাম্পেইন পরিচালিত হয়। এই ক্যাম্পেইনের মাধ্যমে ২০১ জন গর্ভবতী নারীদের মাঝে বিনামূল্যে  বিভিন্ন ধরনের পরীক্ষা-নিরীক্ষা, চিকিৎসা সেবা এবং ঔষধ বিতরনের পাশাপাশি স্বাস্থ্যবিধি সংক্রান্ত প্রয়োজনীয় দিকনির্দেশনা প্রদান করা হয়।  পাশাপাশি চিকিৎসা সেবা নিতে আগত সাধারণ মানুষের মাঝে মাস্ক, হ্যান্ড, স্যানিটাইজার, সাবান এবং ত্রাণ বিতরণ করেন সেনা সদস্যরা। এছাড়াও করোনা মোকাবেলায় সেনাবাহিনীর নিজস্ব অর্থায়নে দরিদ্র ও অসহায় মানুষের মাঝে ত্রাণ বিতরণ, সচেতনতামূলক কার্যক্রম পরিচালনা, স্বাস্থ্যবিধি সংক্রান্ত নীতিমালা বাস্তবায়ন, গণপরিবহন মনিটারিং, অসহায় কৃষকদের মাঝে বিনামূল্যে বীজ বিতরণসহ বহুমূখী জনকল্যানমূলক কার্যক্রম অব্যাহত রেখেছে যশোর সেনানিবাসের সেনাসদস্যরা। অন্যদিকে খুলনার উপকূলীয় এলাকায় বাঁধ নির্মাণ অব্যাহত রাখার পাশাপাশি চিকিৎসা সেবা প্রদানসহ নানাবিধ জনসেবামূলক কার্যক্রম অব্যাহত রেখেছে যশোর সেনানিবাসের সেনাসদস্যরা। সংবাদ বিজ্ঞপ্তি

২০ লাখ টাকা না দেয়ায় ক্রসফায়ার  প্রদীপের বিরুদ্ধে আরেকটি মামলা

ঢাকা অফিস ॥ কক্সবাজারের টেকনাফ উপজেলার হোয়াইক্যং ইউনিয়নের বাসিন্দা মিজানুর রহমানকে ক্রসফায়ারে হত্যার অভিযোগে টেকনাফের বরখাস্তকৃত ওসি প্রদীপ কুমার দাশসহ ১৩ জনের বিরুদ্ধে কক্সবাজার আদালতে আরেকটি মামলা হয়েছে। গতকাল রোববার কক্সবাজারের সিনিয়র জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট (টেকনাফ-৩) হেলাল উদ্দীনের আদালতে এ মামলা করা হয়। নিহত মিজানুর রহমানের বড়বোন নূর নাহার বাদী হয়ে এ মামলা করেন। মামলায় সাবেক ওসি প্রদীপ কুমার দাশকে প্রধান আসামি করা হয়েছে। নিহত মিজানুর রহমান হোয়াইক্যংয়ের জিমনখালী এলাকার বাসিন্দা। বাদীপক্ষের আইনজীবী জুলখার নাইন জিল্লুর মামলার বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন। মেজর সিনহা হত্যা মামলায় ওসি প্রদীপের বিরুদ্ধে হত্যা ও নির্যাতনের অভিযোগে এটিসহ ১৪টি মামলা করা হয়েছে। মামলার এজাহারে বাদী উল্লেখ করেন, মিজানুর রহমান খেটে খাওয়া মানুষ। গত ৪ এপ্রিল টেকনাফ থানা পুলিশের একটি দল তাকে আটক করে নিয়ে যায়। এরপরও পুলিশ তার বাড়িঘর, আসবাবপত্র ভাঙচুর করে। ২০ লাখ টাকা দাবি করে পুলিশ। না দিলে বন্দুকযুদ্ধে হত্যা করা হবে বলে হুমকি দেয়া হয়। বাধ্য হয়ে পরিবার নানাভাবে চেষ্টা করে দুই লাখ টাকা জোগাড় করে পুলিশকে দেয়। কিন্তু আরও ১৮ লাখ টাকা দিতে না পারায় ৫ এপ্রিল রাত সাড়ে ১১টার দিকে নিজের এলাকায় এনে মিজানুর রহমানকে বন্দুকযুদ্ধের নামে গুলি করে হত্যা করা হয়। আইনজীবী জুলখার নাইন জিল্লুর বলেন, ফৌজদারি মামলার এজাহারটি আমলে নিয়েছেন আদালত। এ ঘটনা সংক্রান্ত অন্য মামলা আছে কি-না তা আগামী ১০ নভেম্বরের মধ্যে আদালতে প্রতিবেদন দাখিল করতে টেকনাফ থানার ওসিকে নির্দেশ দেয়া হয়েছে। এদিকে, সাবেক ওসি প্রদীপ কুমার দাশ টেকনাফের আগে কক্সবাজারের মহেশখালী থানা, সিএমপির পতেঙ্গা, বায়েজিদ ও পাঁচলাইশ থানার ওসি হিসেবে দায়িত্ব পালন করেন। এসব জায়গায় কাজ করতে গিয়ে নানা সমালোচনার জন্ম দিয়েছেন তিনি। যেখানেই দায়িত্ব পালন করেছেন সেখানেই বিতর্কের জন্ম দিয়েছেন। একাধিকবার স্ট্যান্ড রিলিজও হয়েছেন। কিন্তু প্রতিবারই অদৃশ্য ছায়ায় পার পেয়ে গেছেন প্রদীপ কুমার দাশ। সর্বশেষ টেকনাফ থানায় যোগদান করে বেপরোয়া হয়ে উঠেন প্রদীপ কুমার দাশ। মাদক ব্যবসার তকমায় ব্যবসায়ী ও নিহতদের বন্দুকযুদ্ধের নামে হত্যার অভিযোগে রয়েছে তার বিরুদ্ধে। এ ছাড়া নিরীহ লোকজনকে বন্দুকযুদ্ধের মিথ্যা মামলায় জড়িয়ে তাদের কাছ থেকে হাতিয়ে নিয়েছেন বিপুল অর্থ। মেজর সিনহা নিহতের ঘটনার পর ওসি প্রদীপের বিরুদ্ধে বন্দুকযুদ্ধের নামে হত্যার অভিযোগ, সাংবাদিক নির্যাতনের দায়ে ও দুর্নীতির অভিযোগে এর আগে ১৩টি মামলা করা হয়। গত ৩১ জুলাই রাতে কক্সবাজার-টেকনাফ মেরিন ড্রাইভ সড়কের শামলাপুর চেকপোস্টে পুলিশের গুলিতে নিহত হন সেনাবাহিনীর অবসরপ্রাপ্ত মেজর সিনহা মো. রাশেদ খান। এ ঘটনায় সিনহার বোন শারমিন শাহরিয়া ফেরদৌস ৫ আগস্ট কক্সবাজারের একটি আদালতে হত্যা মামলা করেন। সেখানে টেকনাফ থানার ওসি প্রদীপ কুমার দাশ ও বাহারছড়া তদন্ত কেন্দ্রের পরিদর্শক লিয়াকতসহ নয়জনকে আসামি করা হয়। মামলাটি তদন্ত করছে র‌্যাব। ওই মামলায় আদালতে আত্মসমর্পণ করার পর প্রদীপকে চাকরি থেকে সাময়িক বরখাস্ত করা হয়। স্ত্রীসহ তার নামে দায়ের হওয়া দুদকের মামলায় হাজির করাতে ১২ সেপ্টেম্বর ওসি প্রদীপকে কক্সবাজার কারাগার থেকে চট্টগ্রাম কারাগারে স্থানান্তর করা হয়।

দৌলতপুরে ভ্রাম্যমান আদালতের অভিযানে ৫জনের অর্থদন্ড

দৌলতপুর প্রতিনিধি ॥ কুষ্টিয়ার দৌলতপুরে মুখে মাস্ক ব্যবহার না করায় দায়ে ৪জনকে ৩৩০০ টাকা অর্থদন্ড করেছেন ভ্রাম্যমান আদালত। গতকাল রবিবার বিকেল ৫টার দিকে উপজেলার প্রাগপুর বাজারে অভিযান চালিয়ে করোনা স্বাস্থ্যবিধি না মেনে মুখ মাস্ক ব্যবহার না করার দায়ে ১৮৬০ সালের দ: বি: ২৬৯ ধারায় (সংক্রমক রোগ প্রতিরোধ নিয়ন্ত্রন ও নির্মূল আইন) ৪ জনকে ৩৩০০ টাকা অর্থদন্ড করেন ভ্রাম্যমান আদালতের বিচারক ও দৌলতপুর নির্বাহী অফিসার শারমিন আক্তার। একই সময় ভোক্তা অধিকার সংরক্ষণ আইন ২০০৯ এর ৫৩ ধারায় একটি মামলায় ১০০০ টাকা অর্থদন্ড করা হয়।

ভ্রাম্যমান আদালত সূত্র জানায়, করোনা স্বাস্থ্যবিধি না মেনে মুখ মাস্ক ব্যবহার না করার দায়ে ৪জন পথচারীকে ৩৩০০ টাকা এবং ভোক্তা অধিকার সংরক্ষণ আইনে এক ব্যবসা প্রতিষ্ঠান ১০০০ টাকা অর্থদন্ড করেন ভ্রাম্যমান আদালতের বিচারক ও দৌলতপুর নির্বাহী অফিসার শারমিন আক্তার। এসময় করোনা স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলার জন্য নির্দেশনা ও পরামর্শ দেওয়ার পাশাপাশি আদালতের অভিযান চলমান রাখার কথা জানানো হয়।

মসজিদে বিস্ফোরণ

শঙ্কামুক্ত নন চিকিতসাধীন পাঁচজন

ঢাকা অফিস ॥ নারায়ণগঞ্জে বায়তুস সালাত জামে মসজিদে বিস্ফোরণে দগ্ধ পাঁচজন এখনও  শেখ হাসিনা বার্ন অ্যান্ড প্লাস্টিক সার্জারি ইনস্টিটিউটে চিকিৎসাধীন। তাদের অবস্থার কিছুটা উন্নতি হচ্ছে। তবে তারা এখনও শঙ্কামুক্ত নন বলে জানিয়েছেন শেখ হাসিনা বার্ন অ্যান্ড প্লাস্টিক সার্জারি ইনস্টিটিউটের আবাসিক সার্জন ডা. পার্থ শংকর পাল। গতকাল রোববার সকালে ইনস্টিটিউটে সাংবাদিকদের এসব কথা জানান তিনি। ডা. পার্থ বলেন, দগ্ধ পাঁচজনই নিবিড় পরিচর্যা কেন্দ্রে (আইসিইউ) চিকিৎসাধীন। ভর্তি পাঁচজনের মধ্যে কয়েকজনের অবস্থা আগের চেয়ে উন্নতি হয়েছে। তবে শঙ্কামুক্ত নন। তাদের সবারই শ্বাসনালি পুড়ে গেছে। তাদের ক্ষত সারিয়ে সুস্থ করার জন্য চেষ্টা চলছে। তাদের ক্লোজ মনিটরিং করা হচ্ছে। তাদের শারীরিক অবস্থা কিছুটা ইমপ্রুভ হচ্ছে। গতকাল একজনকে অপারেশন থিয়েটারে (ওটি) নিয়ে ড্রেসিং করা হচ্ছে। নিয়ম অনুযায়ী দগ্ধ সবারই ড্রেসিং করা হয়। তিনি বলেন, ওই পাঁচজনের শরীরের ২২ থেকে ৫০ শতাংশ পুড়ে গেছে। সাধারণত শরীরের ৪০ ভাগ বা তার বেশি পুড়ে গেলে তাকে সারিয়ে তোলা কঠিন হয়ে পড়ে। এর মধ্যে ওই পাঁচজনের সবার শ্বাসনালিতে ক্ষত রয়েছে। এজন্য এখনই কাউকে শঙ্কামুক্ত বলা যাবে না। চিকিৎসকরা তাদের সারিয়ে তুলতে চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছেন। গত ৪ সেপ্টেম্বর এশার নামাজের সময় নারায়ণগঞ্জের পশ্চিম তল্লার বাইতুস সালাত জামে মসজিদে বিস্ফোরণ ঘটে। এতে ৩৭ জন মুসল্লি দগ্ধ হন। তাদের শেখ হাসিনা জাতীয় বার্ন অ্যান্ড প্লাস্টিক সার্জারি ইনস্টিটিউটে ভর্তি করা হয়। চিকিৎসাধীন অবস্থায় ৩১ জনের মৃত্যু হয়েছে। মামুন নামে একজন সুস্থ হয়ে বাসায় ফিরেছেন। এখনও পাঁচজন চিকিৎসাধীন। তারা হলেন- মো. সিফাত, আমজাদ হোসেন, মো. ফরিদ, আবদুল আজিজ ও কেনান হোসেন।

দাদা রাইস মিলের অন্যতম সত্বাধিকারী জয়নাল আবেদিন প্রধানের বিবৃতি

কুষ্টিয়ার খাজানগরে ব্যবসায়ী আব্দুস সালাম প্রতিষ্ঠিত ‘দাদা রাইস’ মিলের মূল স্বত্ব ৪ ভাইয়ের নামে  

কুষ্টিয়ার খাজানগর এলাকায় ১৯৭৮ সালে খাজানগর রাইস মিল প্রতিষ্ঠা করেন  আব্দুস সালাম প্রধানের দাদা রমিজ প্রধান। পরে রমিজ প্রধানের বড় ছেলে হযরত আলী প্রধান ৪ পুত্রের নামে দাদা রাইস মিল প্রতিষ্ঠা করেন ১৯৯৮ সালে। এরপর থেকে যৌথভাবে হযরত আলীর ৪ ছেলে আব্দুস সালাম প্রধান, খোরশেদ আলম প্রধান, আরশাদ আলী প্রধান ও শাহজালাল ওরফে তরফ আলী সারা দেশে ব্যবসা করে আসছিল। পরে ২০০০ সালে খোরশেদ আলম মারা গেলে পৈত্রিক সুত্রে তার বড় ছেলে জয়নাল আবেদিন প্রধান ও ছোট ছেলে টিপু সুলতান সমুন প্রধান ব্যবসার অংশীদ্বার হন। এরপর আজ অবধি দাদা রাইস মিলের নামে হযরত আলীর ৪ ছেলে ব্যবসা পরিচালনা করে আসছে। এর মাঝে আব্দুস সালাম প্রধান পারিবারিক আলোচনার মাধ্যমে আলাদা ব্যবসা শুরু করেন। ঢাকাসহ ৭টি বড় চালের মার্কেটে দাদা রাইস মিল উৎপাদিত চাল তাকে বিক্রির অনুমতি দেয়া হয়। এছাড়া দাদা আটো রাইস মিল-২  এ তার একক অংশীদার দেয়া হয়। এরপর মূল প্রতিষ্ঠান দাদা রাইস মিলের উৎপাদিত চাল বাকি তিনজন আরশাদ আলী প্রধান, জয়নাল আবেদীন এন্ড ব্রাদ্রার্স ও শাহাজালাল ওরফে তরফ আলী প্রধান ব্যবসাসহ যাবতীয় হিসাব এক সাথে পরিচালনা করে আসছে অদ্যবধি। এর মাঝে গতকাল ১৩ আগষ্ট কুষ্টিয়ার স্থানীয় কয়েকটি পত্রিকায় প্রকাশিত সংবাদে আমাদের দৃষ্টিগোচর হয়। পত্রিকায় সংবাদে কুষ্টিয়ায় ‘ দাদা রাইস’ নাম ব্যবহার করে নিন্মমানের চাল বাজারে ছাড়ার অভিযোগ শিরোনামে একটি সংবাদ ছাপা হয়েছে। এতে আব্দুস সালাম ও তার ছেলেদের বিরুদ্ধে অভিযোগ আনা হয়েছে। প্রকৃত ঘটনা হচ্ছে, আরশাদ আলী দাদা রাইস মিলের একক মালিক দাবি করে যে বক্তব্য দিয়েছে তা মিথ্যা বানোয়াট ও ভিত্তিহীন। তিনি আসল তথ্য গোপন করে মনগড়া ও কাল্পনিক ব্যাখা দিয়ে দাদা রাইস মিলের অন্য অংশীদ্বারদের ছোট করেছেন। অথচ দাদা রাইস মিলের মূল স্বঃস্ত পারিবারিকভাবে ৪ ভাইয়ের নামে পরিচালিত হয়ে আসছে। এ সংবাদে দাদা রাইস মিল সংশ্লিষ্ট ব্যবসায়ীসহ কাউকে বিভ্রান্তি না হওয়ার জন্য অনুরোধ জানানো যাচ্ছে। একই সাথে আরশাদ আলী যে অপচেষ্টা চালাচ্ছেন তার নিন্দা ও প্রতিবাদ জানায় প্রতিষ্ঠানটির সকল কর্ণধার। আগামীতে আরশাদ আলী মিথ্যা প্রপাগন্ডা চালালে তার বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা নেয়া হবে।

জয়নাল আবেদিন প্রধান

অন্যতম সত্বাধিকারী

দাদা রাইস মিল, খাজানগর, কুষ্টিয়া

পোড়াদহে ইয়াসিন-মাহমুদা স্মৃতি পরিষদের উদ্যোগে বিশেষায়িত চিকিতসা ক্যাম্পে ডাঃ ইফতেখার মাহমুদ

সমাজের অবহেলিত মানুষের পাশে দাঁড়ানো সকলেরই কর্তব্য

নিজ সংবাদ ॥ ইয়াসিন-মাহমুদা স্মৃতি পরিষদের উদ্যোগে ‘করোনা বিষয়ক আলোচনা সভা ও বিশেষায়িত চিকিৎসা ক্যাম্প’ অনুষ্ঠিত হয় পোড়াদহ স্বরূপদহ মডেল মাদ্রাসা প্রাঙ্গনে। গতকাল সকালে স্বরূপদহ মাদ্রাসার উদ্যোগে আয়োজিত এই অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন মাদ্রাসা কমিটির সভাপতি বিশিষ্ট ব্যবসায়ী হাজী আব্দুস সামাদ। প্রধান অতিথি ছিলেন ‘ইয়াসিন-মাহমুদা স্মৃতি পরিষদ’র সভাপতি বিশিষ্ট চিকিৎসক ও কুষ্টিয়া মেডিকেল কলেজের প্রতিষ্ঠাতা প্রিন্সিপাল অধ্যাপক ডাঃ ইফতেখার মাহমুদ। বিশেষ অতিথি ছিলেন পোড়াদহ ইউপি চেয়ারম্যান আনোয়ারুজ্জামান মজনু, বঙ্গবন্ধু পরিষদ কুষ্টিয়ার প্রতিষ্ঠাতা সাধারন সম্পাদক শামসুর রহমান বাবু। স্বাগত বক্তব্য রাখেন পোড়াদহ শফি স্মৃতি সংঘের সভাপতি ও স্বরূপদহ মসজিদ কমিটির সাধারন সম্পাদক এস.এম আরিফুল ইসলাম। শুভেচ্ছা বক্তব্য রাখেন সাংবাদিক আ.ফ.ম নুরুল কাদের। এসময় উপস্থিত ছিলেন পোড়াদহ শফি স্মৃতি সংঘের সাধারন সম্পাদক জাহাঙ্গীর আলম, ইয়াসিন-মাহমুদা স্মৃতি যুব পরিষদের আহবায়ক মওদুদ আহমেদ রাজিব, সাংবাদিক মিলন আলী, পোড়াদহ ইউপি আওয়ামী লীগের সাধারন সম্পাদক তৈয়বুর রহমান মন্টু, জেলা যুবলীগের সদস্য ও পোড়াদহ বস্ত্র ব্যবসায়ী সমিতির সভাপতি মাসুদুর রহমান, স্বরূপদহ মডেল মাদ্রাসা কমিটির সাধারন সম্পাদক হাজী শহিদুল ইসলাম, মাদাসা কমিটির সদস্য সোহরাব হোসেন, পোড়াদহ ৩নং ওয়ার্ড মেম্বার মিজানুর রহমান মীরা, মডেল মাদ্রাসার কমিটির কোষাধ্যক্ষ রফিকুল ইসলাম, মাদ্রাসা কমিটির সদস্য কায়সার আলী, মাদ্রাসা কমিটির সদস্য শেখ নুরুজ্জামান, স্বরূপদহ জামে মসজিদের সহ-সভাপতি আব্দুস সামাদ আকমল, জামে মসজিদ কমিটির সদস্য মারফত আলী,মসজিদ কমিটির কোষাধ্যক্ষ নুরুল হক, গোরস্থান কমিটির কোষাধ্যক্ষ আব্দুর রশিদ, গোরস্থান কমিটির সদস্য আরিফসহ আরো অনেকে। প্রধান অতিথির বক্তব্যে অধ্যাপক ডাঃ ইফতেখার মাহমুদ বলেন- সমাজের অবহেলিত মানুষদের পাশে দাঁড়ানো সকলেরই কর্তব্য কেননা আমরা মানুষ হিসেবে সৃষ্টির সেরা জীব। সৃষ্টিকর্তা আমাদের মানবিকতা দিয়েই সৃষ্টি করে সেরা জীব হিসেবে আখ্যা দিয়েছেন তাই আমাদের সকলকে মানুষের কল্যানে কাজ করতে হবে। তিনি আরো বলেন, দেশ আমাদের  অনেক দিয়েছে কিন্তু আমরা দেশের নাগরিক হিসেবে দেশকে কতটুকু দিতে পেরেছি? সেই বিষয়টি মাথায় রেখে মানুষের কল্যানে আমাদের নিবেদিত হতে হবে। তিনি আরো বলেন, বৈশ্বিক করোনাকালীন সময়ে আমাদের সকলকে বিশেষ খেয়াল রাখতে হবে। সকল বিধি নিষেধ মেনে চলতে পারলে আমরা সকলেই করোনা মোকাবিলায় সফলকাম হতে পারবো। অধ্যাপক ডাঃ ইফতেখার মাহমুদ বলেন, আমি আপনাদের উপজেলার মানুষ, আমি চাই এলাকার মানুষের স্বাস্থ্য সেবা নিশ্চিত করনে কাজ করতে আর সেই লক্ষে এখন থেকে নিয়মিত বিভিন্ন এলাকার মানুষকে বিনামুল্যে স্বাস্থ্য সেবাসহ গরীব অসহায়দের পাশে সহযোগিতা নিয়ে তাদের পাশে দাঁড়াবো। তিনি বলেন, সমাজের বৃত্তবানদের অবহেলিতদের পাশে এসে দাঁড়াতে হবে তবেই সমাজের মানুষের মুখে হাসি ফুটবে। দিনব্যাপী চিকিৎসা ক্যাম্পে সহস্রাধিক বিভিন্ন বয়সের মানুষকে স্বাস্থ্যসেবা দেয়া হয়। তিনি আরো বলেন-আমি বর্তমানে অবসরে আছি আমার অফুরন্ত সময় রয়েছে। আল্লাহপাক আমাকে এবং আমার পরিবারকে অনেক কিছু দিয়েছেন বাকী সময়টা আমি মানুষর কল্যানে কাজ করতে চাই। ইতিমধ্যে এলাকার মানুষের মাঝে বিনামুল্যে চিকিৎসা সেবা প্রদান, দুস্থ্যদের সহায়তা প্রদান এবং কৃতি শিক্ষার্থীদের লেখাপড়ায় আগ্রহী করে তুলতে তাদের সম্বর্ধনা প্রদান ও আর্থিক সহযোগিতা করে আসছি। আগামীতে আমাদের এই কার্যক্রম আরো বড় পরিসরে শুরু করবো ইনশাআল্লাহ। চিকিৎসকদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন বিশিষ্ট শিশু বিশেষজ্ঞ কুষ্টিয়া মেডিকেল কলেজের সহযোগী অধ্যাপক (অবঃ) ডাঃ জমির উদ্দিন, পাবনা ২৫০শয্যা বিশিষ্ট হাসপাতালের মেডিকেল অফিসার ডাঃ জাহিদুল আলম খান ও ডাঃ এলিনা মাহমুদ।

স্বল্প সুদে দীর্ঘমেয়াদি ঋণ পাবেন আইনজীবীরা – আইনমন্ত্রী

ঢাকা অফিস ॥ করোনাভাইরাস (কোভিড-১৯) মহামারির মধ্যে আর্থিক সংকট মোকাবিলায় আইনজীবীরা স্বল্প সুদে দীর্ঘমেয়াদি ঋণ পাবেন বলে জানিয়েছেন আইন, বিচার ও সংসদ বিষয়ক মন্ত্রী আনিসুল হক। গতকাল রোববার ফরিদপুরে ৫৪ কোটি টাকা ব্যয়ে নির্মিত আটতলা চিফ জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালত ভবন উদ্বোধন অনুষ্ঠানে ভিডিও কনফারেন্সিংয়ের মাধ্যমে প্রধান অতিথি হিসেবে যুক্ত হয়ে এ কথা জানান আইনমন্ত্রী। তিনি বলেন, ‘করোনাভাইরাসের কারণে প্রায় আড়াই মাস আইনজীবী বিশেষ করে জুনিয়র আইনজীবীরা তাদের প্রাকটিস করা থেকে বঞ্চিত হয়েছেন। এতে অনেকেই আর্থিক সংকটে পতিত হয়েছেন। অনেকেই কষ্টে আছেন। তাদের এই কষ্ট লাঘবের জন্য স্বল্প সুদে দীর্ঘমেয়াদি ঋণ দেয়ার ব্যবস্থা নেয়া হচ্ছে।’ বাংলাদেশ বার কাউন্সিলের মাধ্যমে এই ঋণ দেয়া হবে বলে জানান আইনমন্ত্রী। ‘প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার আমলে বঙ্গবন্ধু হত্যা মামলা, জেল হত্যা মামলা ও মানবতাবিরোধী অপরাধীদের বিচার হয়েছে’ জানিয়ে মন্ত্রী আরও বলেন, ‘হেফাজতে মৃত্যুর কারণে এই উপমহাদেশে প্রথম সাজাও এই সরকারের সময় হয়েছে। অপরাধীদের সাজা দিয়ে আইনের শাসন প্রতিষ্ঠা করা যায়। কেউ আইনের ঊর্ধ্বে নয়, এই দেশে সকলকেই আইন মানতে হবে এবং এর ব্যত্যয় ঘটালে তার বিচার হবে এবং আইনসঙ্গত সাজা হবে। এটা সকলকে মনে রাখতে হবে।’ আইনমন্ত্রী বলেন, ‘জনগণ আমাদের ওপর তখনই আস্থা রাখবে, যখন তারা সঠিক বিচার পাবে। বিচারক ও আইনজীবীরা বিচার বিভাগকে কার্যকরের অত্যন্ত মূল্যবান দুটি অর্গান। রাষ্ট্রের তিনটি গুরুত্বপূর্ণ অর্গানের মধ্যে বিচার বিভাগ যেমন একটি, ঠিক তেমনি বিচার বিভাগকে সঠিকভাবে পরিচালনার জন্য বিচারক ও আইনজীবীরা অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ দুটি ইনস্টিটিউশন। এই দুই ইনস্টিটিউশন মিলে জনগণের ন্যায়বিচার পাওয়ার অধিকার নিশ্চিত করতে হবে।’ ‘দুই হাজার ৮৭৬ কোটি টাকা ব্যয়ে ই-জুডিশিয়ারি প্রকল্প হাতে নেয়া হয়েছে’ জানিয়ে আনিসুল হক বলেন, ‘ন্যায়বিচার নিশ্চিত করলে জনগণ এসব কাজের সুফল পাবে। বর্তমানে ৩৭ লাখ মামলার জট রয়েছে। এ জট কমাতে হবে।’ ‘জনগণের কাছে ন্যায়বিচার পৌঁছে দেয়া না গেলে তার পরিণতি কী হবে, সেটা মুখে উচ্চারণ করাও উচিত নয়।’ সরকার জেলায় জেলায় চিফ জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালত ভবন ও জেলা জজ আদালত ভবন নির্মাণ করে দিচ্ছে, জানিয়ে আইনমন্ত্রী বলেন, ‘বিচারকদের সঠিকভাবে মূল্যায়ন করে তাদের বেতন-ভাতা বাড়িয়ে দিয়েছেন। কারণ প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা মনে করেন বিচারকরা আর্থিকভাবে স্বচ্ছল থাকলে তারা কাজে মনোনিবেশ করতে পারবেন এবং জনগণ সুষ্ঠু বিচার পাবে।’ ফরিদপুরের জেলা ও দায়রা জজ মো. সেলিম মিয়ার সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে ফরিদপুর-১ আসনের সংসদ সদস্য মনজুর হোসেন ও ফরিদপুর-৪ আসনের সংসদ সদস্য মজিবুর রহমান চৌধুরী (নিক্সন), আইন ও বিচার বিভাগের সচিব মো. গোলাম সারওয়ার, জেলা প্রশাসক অতুল সরকার, পুলিশ সুপার মো. আলিমুজ্জামান, জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি সুবল চন্দ্র সাহা, জেলা আইনজীবী সমিতির সভাপতি এ ও এম খালেদ প্রমুখ বক্তব্য দেন। অনুষ্ঠান সঞ্চালনা করেন আইন ও বিচার বিভাগের যুগ্ম সচিব বিকাশ কুমার সাহা।

হাবিবুর রহমান বীর প্রতীক হাসপাতালে

ঢাকা অফিস ॥ যুদ্ধাহত বীর মুক্তিযোদ্ধা, কৃষক শ্রমিক জনতা লীগের সাধারণ সম্পাদক  হাবিবুর রহমান তালুকদার খোকা বীর প্রতীক অসুস্থ হয়ে পড়েছেন।  শনিবার (১২ সেপ্টেম্বর)  তাকে রাজধানীর বারডেম হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে বলে জানান দলের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক প্রিন্সিপাল ইকবাল সিদ্দিকী। গতকাল রোববার ইকবাল সিদ্দিকী জানান, হাবিবুর রহমান ডায়াবেটিসসহ অন্যান্য শারীরিক সমস্যা নিয়ে গ্যাস্ট্রোলিভার বিশেষজ্ঞ প্রফেসর ডা. তারেক মাহমুদ ভূঁইয়ার তত্ত্বাবধানে চিকিৎসাধীন রয়েছেন। হাবিবুর রহমানের আশু রোগমুক্তির জন্য কৃষক শ্রমিক জনতা লীগের সভাপতি কাদের সিদ্দিকী এবং দলীয় নেতারা দেশবাসীর দোয়া কামনা করেছেন।

কুষ্টিয়ায় একযোগে তিন থানার ওসি রদবদল

নিজ সংবাদ ॥ কুষ্টিয়ার তিনটি পুলিশ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) পরিবর্তন করা হয়েছে। এর মধ্যে দুটি থানায় রদবদল ও একটি থানায় নতুন ওসি  দেওয়া হয়েছে। শনিবার রাতে তিন থানার ওসি পরিবর্তন করা হয়। গতকাল রোববার সকালে কুষ্টিয়ার পুলিশ সুপার এস এম তানভীর আরাফাত এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন।

পুলিশ সুপার কার্যালয় সূত্র জানায়, গত ২৬ আগস্ট করোনায় আক্রান্ত হয়ে দৌলতপুর থানার ভারপাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) এসএম আরিফুর রহমান মারা যান। এরপর থেকে সেখানে পদ খালি হয়। পরে শনিবার রাতে খোকসা থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা জহুরুল ইসলামকে দৌলতপুর থানার ওসি হিসেবে পদায়ন করা হয়েছে। কুষ্টিয়া সদর মডেল থানার ওসি গোলাম মোস্তফাকে খোকসা থানায় বদলি করা হয়েছে। এছাড়া পিরোজপুর জেলার সরূপকাঠি থানার ওসি কামরুজ্জামান তালুকদারকে কুষ্টিয়া সদর মডেল থানার ওসি করা হয়েছে। কুষ্টিয়া মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) গোলাম মোস্তফা বলেন, তিনি খোকসাতে বদলি হয়েছেন। নতুন ওসি যোগদান করে দায়িত্ব বুঝে নেবার পর খোকসাতে চলে যাবেন। দৌলতপুর থানার পরিদর্শক নিশিকান্ত সরকার বলেন, নতুন ওসি এখনও থানায় যোগদান করেননি। হয়তো বিকেলের মধ্যে যোগদান করবেন।

দৌলতপুর সীমান্তে ১২৪ ফেনসিডিল উদ্ধার

দৌলতপুর প্রতিনিধি ॥ কুষ্টিয়ার দৌলতপুর সীমান্তে বিজিবি’র অভিযানে ১২৪ বোতল ফেনসিডিল উদ্ধার হয়েছে। শনিবার রাত ৯টার দিকে উপজেলার রামকৃষ্ণপুর ইউনিয়নের মোহাম্মদপুর মাঠে বিজিবি অভিযান চালিয়ে ফেনসিডিলগুলি উদ্ধার করে। বিজিবি সূত্র জানায়, মাদক পাচারের গোপন সংবাদ পেয়ে ৪৭ বিজিবি ব্যাটালিয়ন অধিনস্থ রামকৃষ্ণপুর বিওপি’র টহল দল ওই দিন রাতে মোহাম্মদপুর মাঠে অভিযান চালিয়ে ১২৪ বোতল ফেনসিডিল উদ্ধার করেছে। তবে উদ্ধার হওয়া মাদকের সাথে জড়িত কেউ আটক হয়নি।

করোনা জয় করে কাজে ফিরলেন কুষ্টিয়া পৌর মেয়র আনোয়ার আলী

নিজ সংবাদ ॥ কুষ্টিয়া পৌরসভার মেয়র বীর মুক্তিযোদ্ধা আনোয়ার আলী (৭৫) করোনা জয় করে কাজে ফিরেছেন। গতকাল রবিবার সকালে তিনি কর্মস্থলে যোগদান করেন। এ সময় কাউন্সিলরসহ বিভিন্ন দপ্তরের কর্মকর্তা ও কর্মচারী তাঁকে ফুল দিয়ে স্বাগত জানান। পৌরসভা সূত্রে জানা যায়, গত ৬ আগস্ট মেয়র আনোয়ার আলী ও তাঁর ছেলে পারভেজ আনোয়ার তনুর শরীরে করোনাভাইরাসের (কোভিড-১৯) সংক্রমণ শনাক্ত হয়। পরদিন সকালে  মেয়রকে উন্নত চিকিৎসার জন্য ঢাকার একটি বেসরকারি হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। সেখানে ১০ দিন চিকিৎসা শেষে তিনি ঢাকার বাসায় ছিলেন। গত মঙ্গলবার তিনি ঢাকা থেকে কুষ্টিয়ার বাড়িতে ফিরে আসেন। গতকাল রবিবার  বেলা ১১টায় তিনি তাঁর প্রিয় কর্মস্থল পৌরসভায় যোগ দেন। দুপুর ১২টায় গিয়ে দেখা যায়, পৌরসভার কাউন্সিলর, কর্মকর্তা ও কর্মচারীরা মেয়রকে তাঁর কার্যালয়ে ফুল দিয়ে স্বাগত জানাচ্ছেন। আওয়ামী লীগের বর্ষীয়ান নেতা মেয়র আনোয়ার আলী বলেন, ‘আমি একটানা তিন দিন হাসপাতালে অচেতন ছিলাম। সৃষ্টিকর্তার অশেষ রহমত ও মানুষের ভালোবাসায় জীবন ফিরে  পেয়েছি। করোনা নিয়ে যেন কেউ কোনো অবহেলা না করেন।’

পৌরসভার নির্বাহী প্রকৌশলী রবিউল ইসলাম বলেন, মেয়র মহোদয় ফিরে আসায় আল্লাহর কাছে শুকরিয়া। পৌরসভার কাজে নতুন করে উদ্যম ফিরে আসবে। আনোয়ার আলী একটানা ১৬ বছর কুষ্টিয়া পৌরসভার মেয়র পদে রয়েছেন। বিভিন্ন সময়ে জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক, মুক্তিযোদ্ধা সংসদের কমান্ডারসহ শীর্ষ কয়েকটি পদে দায়িত্ব পালন করেছেন।