সবজি চাষে বোরন সারের ব্যবহার

কৃষি প্রতিবেদক ॥ বাংলাদেশে যত ধরনের সবজি চাষ হয়, এসব সবজির মধ্যে সব সবজিরই সব ধরনের সারের প্রয়োজন সমান নয়। যেসব সার ফসলের জন্য কম লাগে কিন্তু একেবারেই ব্যবহার না করলে বা নিধাির্রত মাত্রায় ব্যবহার না করলে ফসলের জন্য সমস্যার সৃষ্টি হয়। সেই সারগুলোর মধ্যে বোরন অন্যতম। বোরন সার পরিমিত মাত্রায় ব্যবহারে যেমন ফলন বাড়ে তেমনি অতিরিক্ত ব্যবহারে ফসলের ক্ষতি হয় ও ফলন মারাত্মকভাবে কমে যেতে পারে। তাই বোরন সার ব্যবহারে খুবই সতকর্ থাকতে হয়। তেল ফসল হিসেবে বাংলাদেশে সরিষার চাষই প্রধান। প্রতি বছর প্রায় সাড়ে তিন লাখ হেক্টর জমিতে সরিষার চাষ হয়ে থাকে। যা থেকে প্রায় সাড়ে চার লাখ মে. টন সরিষা বীজ উৎপাদন হয়। যা থেকে প্রায় পৌনে দুই লাখ মে. টন ভোজ্য তেল পাওয়া যায়। পরীক্ষায় দেখা গেছে যে, সরিষা চাষে বোরন সার ব্যবহার করলে শতকরা ১৯.৮-২৩.০ ভাগ পর্যন্ত ফলন বৃদ্ধি পায়। এজন্য হেক্টরপ্রতি মাত্র ১৫০-২০০ টাকা খরচ করে অতিরিক্ত প্রায় ৭-৮ হাজার টাকা আয় করা সম্ভব। শীত মৌসুমে যেসব সবজি চাষ করা হয় সেগুলোর মধ্যে কিছু কিছু সবজির বোরনের চাহিদা লক্ষ্য করা যায়। এসব সবজির মধ্যে উল্লেখযোগ্য হলোÑ বেগুন, টমেটো, ফুলকফি, বাঁধাকপি, শিম, বরবটি, মটরশুঁটি, মূলা, আলু, গাজর, শালগম, বীট, সরিষা শাক, পালং শাক, পেঁয়াজ ইত্যাদি। জমিতে মাটির উপরের স্তরের তুলনায় নিচের স্তরেই বোরন বেশি থাকে। বিশেষ করে বেলে বা বেলে দো-আঁশ মাটিতে সেচের পানির সঙ্গে বোরন চুঁইয়ে মাটির নিচের দিকে চলে যায়। এজন্য এধরনের মাটিতে বোরন সার প্রয়োগের চেয়ে পাতায় প্রয়োগ বেশি কাযর্কর। তবে অন্য ধরনের মাটিতে বিশেষ করে ভারী মাটি বা চুন মাটিতে বোরন বেশি লাগে। বোরন সার প্রয়োগ করা যায়। পাতায় প্রয়োগ করলে প্রতি লিটার পানিতে ১.৫-২.০ গ্রাম এবং মাটিতে প্রয়োগ করলে ৩-৪ কেজি বোরন সার প্রয়োজন হয়। পাতায় ¯েপ্র করলে বীজ বোনার বা চারা রোপণের ২০-২৫ দিন এবং ৪০-৪৫ দিন পর ¯েপ্র করতে হয়। বোরন পাতায় ¯েপ্র করার অসুবিধা হলোÑ অভাবজনিত লক্ষণ দেখা দেয়ার পর এটি যখন প্রয়োগ করা হয়, তখন ফসলের বেশ কিছু ক্ষতি হয়ে যায়। একটা ফসলে বোরন ব্যবহার করার পরের ফসলে ব্যবহার করতে হয় না। তৃতীয় ফসল চাষের সময় প্রয়োজন বুঝে আবার ব্যবহার করতে হয়।
বোরনের অভাবে বাড়ন্ত আলুগাছের ডগার পাতা পুরু হয় ও কিনারা বরাবর ভিতরের দিকে গুটিয়ে গিয়ে অনেকটা কাপের আকৃতি ধারণ করে। এই সব পাতা ভঙ্গুর হয়। আলুগাছের শিকড়ও গুটিয়ে যায়, গাছ দুবর্ল হয়। আলু ছোট আকারের হয়, খোসা খসখসে ও তাতে ফাটা ফাটা দাগ দেখা যায়। কখনো কখনো আলুর কন্দের ভেতরে বাদামি দাগ দেখা যায়। বোরনের অভাবে টমেটোর চারা গাছে সবুজ রঙের পরিবর্তে কিছুটা বেগুনি রং লক্ষ্য করা যায়। বাড়ন্ত টমেটোগাছের ডগার কুঁড়ি শুকিয়ে মরে যায়। পাতা এবং পাতার বৃন্ত পুরু ও ভঙ্গুর হয়। কান্ড খাটো হয়ে পুরো গাছ ঝোপালো হয়ে যায়। ফল বিকৃত হয় ও খোসা খসখসে হয়ে ফেটে যায়। বোরনের অভাবে বেগুনগাছের বৃদ্ধি কমে যায়। ফুল সংখ্যায় কম আসে এবং ফুল ঝরা বৃদ্ধি পায়। ফল আকারে ছোট হয় ও ফল ফেটে যায়। কখনো কখনো কচি ফল ঝরে পড়ে। বোরনের অভাবে শিম ও বরবটির নতুন বের হওয়া পাতা কিছুটা পুরু ও ভঙ্গুর হয়। পাতার রং গাঢ় সবুজ ও শিরাগুলো হলদে হয়ে যায়। শেষে পাতা শুকাতে শুরু করে, গাছে ফুল দেরিতে আসে ও শুঁটি বীজহীন হয়। বোরনের অভাবে ফুলকপির চারার পাতা পুরু হয়ে যায় এবং চারা খাটো হয়। ফুল বা কাডের্র উপরে ভেজা ভেজা দাগ পড়ে। পরে ওই দাগ হালকা গোলাপি এবং শেষে কালচে হয়ে ফুলটিতে পচন ধরে। পাতার কিনারা নিচের দিকে বেঁকে যায় ও ভঙ্গুর প্রকৃতির হয়। পুরনো পাতা প্রথমে সাদাটে এবং পরে বাদামি হয়ে কিছুটা উঁচু খসখসে দাগে পরিণত হয়। কাটলে আক্রান্ত অংশ থেকে এবং ফুলকপি রান্নার পর এক ধরনের দুগর্ন্ধ বের হয়। বাঁধাকপির মাথা বাঁধা শুরু হওয়ার সময় দেখা যায় যে মাথা বাঁধছে না এবং ভেতরটি ফাঁপা হয়ে যায়। একেবারে ভেতরের কচি পাতাগুলো বাদামি রঙের হয় এবং পচন ধরে। কান্ডের ভেতরের মধ্যাংশ ফাঁপা হয় ও পচে যায়। বোরনের অভাবে মরিচ বা মিষ্টি মরিচের কচি পাতা হলুদ হয়ে এবং ফুল বা কচি ফলও ঝরে পড়ে। গাছের বৃদ্ধি প্রায় বন্ধ হয়ে যায়। বোরনের অভাবে সরিষার বীজ গঠন ঠিকভাবে হয় না। হেক্টরপ্রতি ১.৫ কেজি বোরন প্রয়োগ করলে সরিষার বীজ উৎপাদন প্রায় ৫৯% পর্যন্ত বৃদ্ধি পেতে পারে (হালদার ও অন্যান্য, ২০০৭)। জাত, মাটি, স্থান (কৃষি পরিবেশ অঞ্চল) ও মাটিতে রসের তারতম্য অনুসারে বোরন সার হিসেবে পানিতে গুলে নিয়ে ¯েপ্র করতে হয়। পানিতে মিশিয়ে প্রয়োগ করলে নিধাির্রত মাত্রার অধের্ক পরিমাণ সার প্রয়োজন হয়। এ জন্য ১০-১৫ দিন পর পর ২-৩ বার বোরন সার ¯েপ্র করা যেতে পারে। জমিতে সরাসরি বোরন সার প্রয়োগ করা যায়। সে ক্ষেত্রে টিএসপি, এমওপি, জিপসাম, জিংক অক্সাইড ও বোরন সারের সবটুকু এবং ইউরিয়ার অধের্ক পরিমাণ শেষ চাষের সময় মাটিতে প্রয়োগ করতে হয়। বাকি ইউরিয়া গাছে ফুল আসার সময় উপরি প্রয়োগ করে একবার পানি সেচ দিতে হয়। বোরন সার হিসেবে ব্যবহারের জন্য ফলিরিয়েল, সলুবোর, লিবরেল বোরন, আলফা বোরন ইত্যাদি পাওয়া যায়। এ ছাড়া দানাদার বোরিক এসিড ও বোরাক্স বা সোহাগা (সোডিয়াম টেট্রাবোরেট) বোরন সার হিসেবে ব্যবহার করা যায়।
লেখক ঃ উদ্যান বিষেশজ্ঞ, কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তর, রংপুর অঞ্চল, রংপুর।

আন্তর্জাতিক ফুটবলে সর্বোচ্চ গোলের রেকর্ড গড়েছেন রামোস

ঢাকা অফিস ॥ ডিফেন্ডার হিসেবে আন্তর্জাতিক ফুটবলে সর্বোচ্চ গোলের রেকর্ড গড়েছেন স্পেনের সের্হিও রামোস। ছাড়িয়ে গেছেন আর্জেন্টিনার সাবেক ডিফেন্ডার দানিয়েল পাসারেইলাকে। মাদ্রিদে রোববার উয়েফা নেশন্স লিগে ইউক্রেনের বিপক্ষে স্পেনের ৪-০ ব্যবধানে জয়ের ম্যাচে প্রথম গোলটি করে পাসারেইলার পাশে বসেন রামোস। আর দ্বিতীয় গোলটি করে জায়গা করে নেন ইতিহাসে। জাতীয় দলের হয়ে এটি তার ২৩তম গোল। আর্জেন্টিনার হয়ে ১৯৭৬ থেকে ১৯৮৬ সাল পর্যন্ত ক্যারিয়ারে ২২ গোল করেছিলেন পাসারেইলা। স্পেনের সর্বোচ্চ গোলদাতার তালিকায় আট নম্বরে উঠে এসেছেন ৩৪ বছর বয়সী এই ফুটবলার, বসেছেন কিংবদন্তি আলফ্রেদো দি স্তেফানোর পাশে। রেকর্ডের বিষয়টি মাথায় নিয়েই খেলতে নেমেছিলেন অধিনায়ক রামোস। ম্যাচ শেষে তার কণ্ঠে ছিল নতুন ইতিহাস গড়ার উচ্ছ্বাস। “জয় ও তিন পয়েন্ট পেয়ে আমি খুশি। এটা ছিল খুবই পেশাদারী পারফরম্যান্স। আর ব্যক্তিগতভাবে রেকর্ডের বিষয়টি আমার মাথায় ছিল, পাসারেইলাকে পেরিয়ে যাওয়ার ভাবনা। মূলত ডিফেন্ডার হলেও গোল করেও আমি দলে অবদান রাখতে পারি। আমি খুব খুশি।” ডিফেন্ডার হিসেবে লা লিগায়ও সর্বোচ্চ গোলের রেকর্ড রামোসের। গত জুনে রোনাল্ড কুমানের ৬৭ গোলের রেকর্ড টপকে যান রিয়াল মাদ্রিদ অধিনায়ক।

বাদল-মানিক লড়বেন বাফুফের সভাপতি পদের জন্য

ঢাকা অফিস ॥ তিনবারের সহ-সভাপতি বাদল রায় যে সভাপতি পদে দাঁড়াতে পারেন, এমন আভাস আগেই পাওয়া গিয়েছিল। শেষ পর্যন্ত হয়েছেও তাই। আসন্ন বাংলাদেশ ফুটবল ফেডারেশন (বাফুফে) নির্বাচনে সভাপতি পদের মনোনয়ন কিনেছেন সাবেক এই স্ট্রাইকার। অবশ্য এ খবরের সঙ্গে একটু চমকও আছে। তার মতো সভাপতি পদে নির্বাচন করতে যাচ্ছেন সাবেক তারকা ফুটবলার ও কোচ শফিকুল ইসলাম মানিক। সোমবার তিনিও এক লাখ টাকা দিয়েও মনোনয়ন পত্র কিনেছেন। এ নিয়ে সকাল থেকে ছিল তুমুল আলোচনা। বাফুফে ভবনে এসে মনোনয়ন পত্র কিনে মানিকবলেছেন, ‘সভাপতি পদে নির্বাচন করতে চাই। এজন্য মনোনয়ন পত্র কিনেছি। শেষ পর্যন্ত লড়ে যাবো।’ অবশ্য গতকাল রাত পর্যন্তও কিছুটা দোটানায় ছিলেন বাদল রায়। কিন্তু গতকাল দুপুরে প্রতিনিধি পাঠিয়ে মনোনয়ন পত্র কিনে সভাপতি পদে নিজের প্রতিনিধিত্ব নিশ্চিত করেছেন তিনি।বাদল রায় বলেছেন, ‘আমি নির্বাচন করবো। তাই মনোনয়ন পত্র কিনেছি। সবার দোয়া চাই।’

ইংল্যান্ডের সর্বকালের সেরা বাটলার

ঢাকা অফিস ॥ এই তো, কিছুদিন আগেও ইংল্যান্ডের টেস্ট দলে জস বাটলারের জায়গা নিয়ে তোলপাড় হলো অনেক। সেই বাটলার যখন খেলতে নামেন রঙিন পোশাকে, তিনিই দলের অপরিহার্য ও সেরা ক্রিকেটারদের একজন। ইংল্যান্ডেরই পেস বোলিং গ্রেট স্টুয়ার্ট ব্রড আবার আরেক ধাপ এগিয়ে। এই দলের সেরা তো বটেই, ব্রডের চোখে সীমিত ওভারে ইংল্যান্ডের সবসময়ের সেরা ক্রিকেটার বাটলার। ব্রডের এই স্তুতি বাটলার আরেকটি ম্যাচ জেতানো ইনিংস খেলার পর। অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে দ্বিতীয় টি-টোয়েন্টিতে ৫৪ বলে ৭৭ রানের দুর্দান্ত অপরাজিত ইনিংসে দলকে জিতিয়েছেন এই কিপার ব্যাটসম্যান। সিরিজের প্রথম ম্যাচেও বাটলারের ২৯ বলে ৪৪ রানের ইনিংসে ইংল্যান্ড পেয়েছিল উড়ন্ত শুরু। এই সিরিজেই শুধু নয়, গত কয়েক বছর ধরেই সীমিত ওভারে অসাধারণ পারফর্ম করে আসছেন বাটলার। ইংল্যান্ডের ২০১৯ বিশ্বকাপ জয়, গত কয়েক বছরে ওয়ানডে-টি-টোয়েন্টিতে দুর্দান্ত ছুটে চলায় বড় অবদান বাটলারের আগ্রাসী ব্যাটিংয়ের। ওয়ানডেতে গত বছর তার ব্যাটিং গড় ছিল ৪৭.৬৪, স্ট্রাইক রেট ১৩৫.৫৬। তার আগের বছর ১১৩.৫৩ স্ট্রাইক রেটে রান করেছিলেন ৫১.৬১ গড়ে! সব মিলিয়ে এই সংস্করণে তার ৩ হাজার ৮৪৩ রান এসেছে ১১৯.৮৩ স্ট্রাইক রেটে। ওয়ানডে ইতিহাসে ৩ হাজার রান ছোঁয়া ব্যাটসম্যানদের মধ্যে তার স্ট্রাইক রেটই সর্বোচ্চ। টি-টোয়েন্টিতেও তিনি দুর্দান্ত ধারাবাহিক ও বিধ্বংসী। প্রায় দেড় হাজার রান করেছেন ১৪০ স্ট্রাইক রেটে। সাউথ্যাম্পটনে রোববার অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে ইনিংসটির পর ইংল্যান্ডের সাবেক ব্যাটসম্যান ও একসময়ের সীমিত ওভারের স্পেশালিস্ট নিল ফেয়ারব্রাদার টুইটারে উচ্ছ্বসিত প্রশংসা করেছেন বাটলারের। “ জস বাটলারের আরেকটি মাস্টারক্লাস! ইনিংসটির গতি, ছন্দ দারুণ ও সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ হলো, দলকে জয়ের ঠিকানায় পৌঁছে দেওয়াৃ একজন ব্যাটসম্যান তার কাজ করে যাচ্ছে দারুণ স্কিল ও বুদ্ধিমত্তায়ৃ অসাধারণ!!!”ফেয়ারব্রাদারের সেই টুইট শেয়ার দিয়েই সম্প্রতি ৫০০ টেস্ট উইকেট স্পর্শ করা ব্রড লিখেছেন, “ইংল্যান্ডের সর্বকালের সেরা সাদা বলের ক্রিকেটার তার কাজ করেছে আবারও।” টি-টোয়েন্টিতে বরাবরই সেরাদের একজন বাটলার এখন আরও কার্যকর হয়ে উঠেছেন ওপেনিংয়ে উঠে আসার পর। ২০ ওভারের ক্রিকেটে ইনিংস শুরু করতে নেমে তার গড় ৫১, স্ট্রাইক রেট ১৫৭! ইংল্যান্ডের টপ অর্ডারে এখন বাটলারের সঙ্গে আছেন জনি বেয়ারস্টো। সামনে চোট কাটিয়ে ফিরবেন জেসন রয়। ওপেনিংয়ে সুযোগের অপেক্ষায় আছেন অ্যালেক্স হেলস, টম ব্যান্টন। দাভিদ মালানও ওপেনিংয়ে পারফর্ম করেছেন। অধিনায়ক ওয়েন মর্গ্যান তবু বাটলারকেই দেখতে চান ইনিংসের শুরুতে। অস্ট্রেলিয়াকে হারানোর পর বাটলার নিজেও জানালেন, এই পজিশনই তার বেশি পছন্দ।“ টি-টোয়েন্টি ক্রিকেটে এটিই সম্ভবত আমার প্রিয় পজিশন। এখানে বেশ সাফল্য পেয়েছি আমি। আর সত্যি বলতে, টি-টোয়েন্টি ক্রিকেটে শীর্ষ তিন পজিশনই যে কারও জন্য ব্যাটিংয়ের সেরা জায়গা। প্রথম তিন পজিশনে ব্যাট করার সুযোগ পেলে লুফে নেওয়ার মতো আমাদের মনে হয় অন্তত ৮-৯ জন ব্যাটসম্যান আছে।” “ আমি এখানে সুযোগ পেয়ে খুবই খুশি। পাশাপাশি, দল আমার কাছে যা চায়, সেটি করতে পেরেও আমি খুশি। ওয়ানডে-টি-টোয়োন্টিতে অনেক ম্যাচ মিডল অর্ডারে খেলে, দল চাইলে সেখানে খেলতেও কোনো সমস্যা নেই। কোচ-অধিনায়কই এসব ঠিক করবেন।” টি-টোয়েন্টি সিরিজ হেরে যাওয়ার পর এখন শেষ ম্যাচে হোয়াইটওয়াশ এড়ানো ও পরের ওয়ানডে সিরিজে তাকিয়ে অস্ট্রেলিয়া। অস্ট্রেলিয়ান পেসার মিচেল স্টার্ক জানালেন, মূল বাধা মনে করছেন তারা বাটলারকেই।“ বাটলার এমন একজন, যাকে নিয়ে শেষ টি-টোয়েন্টিতে এবং অবশ্যই ওয়ানডে সিরিজের জন্যও খুব ভালো পরিকল্পনা করতে হবে। গত দুই ম্যাচে সে যেভাবে খেলছে, এমন খেলতে থাকলে, প্রতিপক্ষের কাজ কঠিন। দল হিসেবে এটা নিয়ে কথা বলতে হবে আমাদের।”

শেষ টি-টোয়েন্টিতে জস বাটলারকে পাচ্ছে না ইংল্যান্ড

ঢাকা অফিস ॥ অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে তৃতীয় ও শেষ টি-টোয়েন্টিতে জস বাটলারকে পাবে না ইংল্যান্ড। ‘জীবাণুমুক্ত পরিবেশ’ থেকে বেরিয়ে পরিবারের কাছে ফিরে গেছেন এই কিপার-ব্যাটসম্যান। ইংল্যান্ড অ্যান্ড ওয়েলস ক্রিকেট বোর্ড (ইসিবি) সোমবার এক বিবৃতি দিয়ে শেষ ম্যাচে বাটলারের না খেলার কথা জানায়। কোভিড-১৯ পরীক্ষা সাপেক্ষে ওয়ানডে সিরিজ শুরুর আগে তিনি দলের সঙ্গে যোগ দেবেন বলে জানানো হয়েছে বিবৃতিতে। সাউথ্যাম্পটনে রোববার দ্বিতীয় টি-টোয়েন্টিতে ৫৪ বলে অপরাজিত ৭৭ রানের ম্যাচজয়ী ইনিংস খেলেন বাটলার। ৬ উইকেটের জয়ে এক ম্যাচ বাকি রেখেই সিরিজ নিজেদের করে নেয় ওয়েন মর্গ্যানের দল। সিরিজের প্রথম ম্যাচে বাটলারের ব্যাট থেকে এসেছিল ২৯ বলে ৪৪ রান। একই মাঠে মঙ্গলবার হবে শেষ টি-টোয়েন্টি। তিন ম্যাচের ওয়ানডে সিরিজ শুরু হবে আগামী শুক্রবার, ম্যানচেস্টারে।

কালুখালীতে প্রাথমিক শিক্ষক কল্যাণ সমিতির পরিচিতি সভা

ফজলুল হক ॥ রাজবাড়ীর কালুখালীতে নবনির্বাচিত  বাংলাদেশ প্রাথমিক শিক্ষক কল্যাণ সমিতি কালুখালী শাখার নতুন কমিটির পরিচিতি সভা অনুষ্ঠিত হয়েছে। এ উপলক্ষ্যে গতকাল সকাল ১১ টায় কালুখালী মহিলা কলেজে কমিটির অর্থ সম্পাদক বিল শ্যামসুন্দরপুর সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক মোঃ আফজাল হোসেনের সঞ্চালণায় নবনির্বাচিত কমিটির সভাপতি নিয়ামতপুর সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক এমএ মান্নানের সভাপতিত্বে অন্যান্যের মধ্যে বক্তব্য রাখেন কমিটির সাধারণ সম্পাদক মাজবাড়ী হুরুন্নেছা সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সহকারী শিক্ষক মোঃ আক্তারুজ্জামান। শুভেচ্ছা বক্তব্য রাখেন কমিটির প্রধান উপদেষ্টা সাবেক সভাপতি মোহাম্মদ আলী জিন্নাহ, ক্রীড়া ও সাংস্কৃতিক সম্পাদক হরিণাডাঙ্গা সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক মতিউল আলম, মহিলা সম্পাদক রোজিনা আক্তার এছাড়াও চন্ডিপুর সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক অমল বিশ্বাস, আলমডাঙ্গা সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক জামেনা খাতুন প্রমূখ বক্তব্য রাখেন। সভায় সভাপতির বক্তব্যে এমএ মান্নান বলেন, বর্তমান সরকার প্রধান জননেত্রী শেখ হাসিনা ২০১৩ সালে এক যোগে ২৬ হাজার ১শত ৯৬টি  বেসরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয় জাতীয়করনের ঘোষণা দেওয়ায় ধন্যবাদ জ্ঞাপণ করেন। এছাড়াও তিনি সমিতিকে চাঙ্গা রাখার জন্য উপস্থিত সকলকে আন্তরিক হতে বলেন। পাশাপাশি প্রাথমিক শিক্ষার মান উন্নয়নে নিজ নিজ অবস্থানে থেকে কাজ করে যাওয়ার আহবান জানান।

ভারতের সাবেক রাষ্ট্রপতি প্রণব মূখার্জি স্মরণে কুষ্টিয়ায় শোকসভা

ভারতের সাবেক রাষ্ট্রপতি প্রণব মূখার্জির স্মরণে কুষ্টিয়ায় শোকসভা অনুষ্ঠিত হয়েছে। সোমবার বিকেল ৫টায় শহরের ডাঃ রতন লিজা ম্যাটস্রে হলরুমে বাংলাদেশ-ভারত সম্প্রীতি পরিষদের আয়োজনে এই শোকসভা অনুষ্ঠিত হয়। বাংলাদেশ-ভারত সম্প্রীতি পরিষদ কুষ্টিয়া জেলা শাখার সভাপতি ডাঃ আমিনুল হক রতনের সভাপতিত্বে শোকসভায় বক্তব্য রাখেন পরিষদের কো-চেয়ারম্যান ও ইসলামী বিশ^বিদ্যালয়ের হিসাব বিজ্ঞান বিভাগের অধ্যাপক ডঃ অরবিন্দু সাহা, বাংলা বিভাগের অধ্যাপক ডঃ শেখ রেজাউল করীম, পরিষদের সাধারণ সম্পাদক নিতাই কুমার কুন্ডু, মহিলা সম্পাদিকা ডাঃ আসমা জাহান লিজা, কুষ্টিয়া আবৃত্তি পরিষদের সভাপতি আলম আরা জুঁই, বড় বাজার ব্যবসায়ী সমিতির সভাপতি ও বাংলাদেশ-ভারত সম্প্রীতি পরিষদের যুগ্ম সম্পাদক মোকারম হোসেন মোয়াজ্জেম, ইসলামী বিশ^বিদ্যালয়ের অতিরিক্ত রেজিষ্ট্রার ডাঃ নওয়াব আলী, চাঁপড়া ইউনিয়নের সাবেক চেয়ারম্যান এনামুল হক মঞ্জু, জেলা ছাত্রলীগের সাবেক সাধারণ সম্পাদক আলী আহসান তুফান, ফটোগ্রফার সোসাইটির সভাপতি খলিলুর রহমান মধু, বাংলাদেশ-ভারত সম্প্রীতি পরিষদের যুগ্ম সম্পাদক হাবিবুল হক পুলক, গনেশ জোয়াদ্দার, সাংস্কৃতিক সম্পাদক মীর জাহিদ। বক্তারা বলেন- ভারতের ১৩তম সাবেক রাষ্ট্রপতি প্রণব মূখার্জি একজন বাঙালী, বাংলাদেশের অকৃত্রিম বন্ধু। যুদ্ধ বিধস্ত এই দেশে বাঙালীদের পাশে ছিলেন, বঙ্গবন্ধুর পাশে থেকে সাহস জুগিয়েছেন। তিনি ছিলেন এদেশের জামাইবাবু। তিনি একাধারে একজন শিক্ষক, সাংবাদিক, অর্থনীতিবীদ, বহুগুণের ভূয়সী প্রংসার একজন ভারতরতেœর অধীকারি প্রণব মূখার্জি। এসময় উপস্থিত ছিলেন বাংলাদেশ-ভারত সম্প্রীতি পরিষদের সকল সদস্যবৃন্দ। সংবাদ বিজ্ঞপ্তি

বন্ধন সংস্থার উদ্যোগে বিনামূল্যে ভেড়া বিতরণ

আমলা অফিস ॥ কুষ্টিয়ার মিরপুরে হতদরিদ্র ১৯টি পরিবারের মাঝে ২টি করে মোট ৩৮টি ভেড়া বিনামূল্যে বিতরণ করা হয়েছে। গতকাল সোমবার বেলা ১১টায় মিরপুর উপজেলার ছাতিয়ান ইউনিয়নের এসএনএকে দাখিল মাদ্রাসা প্রাঙ্গণে “বন্ধন” সংস্থার উদ্যোকে ও বাংলাদেশ এনজিও ফাউন্ডেশনের সহযোগিতায় ছাতিয়ান ও পোড়াদহ ইউনিয়নের ১৯টি হতদরিদ্র পরিবারের মাঝে বিনামূল্যে এ ভেড়া বিতরণ করা হয়। এতে বন্ধন সংস্থার সাবেক সভাপতি ও আটিগ্রাম মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের সহকারী প্রধান শিক্ষক  আজিজুল হকের সভাপতিত্বে প্রধান অতিথির বক্তব্য রাখেন মিরপুর উপজেলা যুব উন্নয়ন কর্মকর্তা নুরুল ইসলাম নান্নু। এসময় তিনি বলেন, বর্তমান সরকার দেশের  বেকার যুবকদের বিভিন্ন প্রশিক্ষনের মাধ্যমে সাবলম্বী করা করছেন। যুবক/যুবতীদের স্বল্প সুদে ঋণ প্রদান করে কর্মসংস্থান সৃষ্টি করছেন বর্তমান সরকার। তিনি বলেন, বন্ধন সংস্থা দীর্ঘদিন ধরে এই অঞ্চলের হতদরিদ্র মহিলাদের সেলাই প্রশিক্ষন, ছাগল ও ভেড়া বিতরণ করে আর্থ সামাজিক উন্নয়নে ভুমিকা রাখছে। অনুষ্ঠানে বন্ধন সংস্থার কো-অর্ডিনেটর ওবাইদুল হকের পরিচালায় বিশেষ অতিথির বক্তব্য রাখেন বন্ধন সংস্থার সভাপতি আব্দুল আলীম, বন্ধন সংস্থার নির্বাহী পরিচালক তাহাজ্জেল হোসেন, কুষ্টিয়া পল্লী বিদ্যুৎ সমিতির সচিব কাঞ্চন কুমার, এসএনএকে দাখিল মাদ্রাসার সুপার ইয়াকুব আলী, সহকারী শিক্ষক শাহাবুদ্দিন, সহায় সংস্থার নির্বাহী পরিচালক আব্দুর রহিম মজনু, বন্ধন সংস্থার মাঠ সংগঠক খাইরুল আলম, আব্দুল লতিফ প্রমুখ। স্বাগত বক্তব্যে বন্ধন সংস্থার নির্বাহী পরিচালক তাহাজ্জেল হোসেন বলেন- ভেড়া পালন খুবই লাভজনক। ছাগলের তুলনায় ভেড়ার রোগ বালাই কম, পালনও সুবিধা। হতদরিদ্র মহিলারাও এ ভেড়া পালন করে স্বাবলম্বী হয়ে উঠতে পারেন। তিনি আরো বলেন, বাংলাদেশ এনজিও ফাউন্ডেশনের সহযোগিতায় আমরা বিভিন্ন সময়ে এলাকার দুস্থ্য পরিবারের মাঝে ছাগল ও ভেড়া বিনামুল্যে প্রদান অব্যহত রেখেছি। সেই সাথে বিনামুল্যে গাছের চারা বিতরণ করে আসছি। বন্ধন সংস্থার উদ্যোগে আমরা মহিলাদের সেলাই মেশিন প্রশিক্ষন ও বিনামূল্যে বিতরণ করেছি। এতে হতদরিদ্র প্রায় সহস্রাধীক পরিবারে স্বচ্ছলতা ফিরে এসেছে। আগামীতেও এ ধরনের কর্মকান্ড অব্যহত থাকবে।

করোনা পরিস্থিতিতে দেশের আর্থ সামাজিক এবং অবকাঠামোগত উন্নয়নে কাজ করে যাচ্ছে সেনাবাহিনী

মহামারী করোনা মোকাবেলায় দেশের আর্থ-সামাজিক এবং অবকাঠামোগত উন্নয়নের জন্য গুরুত্বপূর্ণ অবদান রেখে চলেছে বাংলাদেশ সেনাবাহিনীর ৫৫ পদাতিক ডিভিশন। এরই ধারাবাহিকতায় করোনা পরিস্থিতিতে জাতিকে খাদ্য সংকট থেকে রক্ষায় কৃষকদের মনোবল বৃদ্ধির পাশাপাশি ফসল উৎপাদন অব্যাহত রাখতে কৃষকদের হাতে তুলে দেয়া হচ্ছে নগদ আর্থিক সহায়তা ও উন্নত মানের ফল/সবজির বীজ। এছাড়াও প্রায় প্রতিদিনই দেশের প্রত্যন্ত অঞ্চলে হত দরিদ্র ও অসহায় মানুষের চিকিৎসা সেবা দিয়ে যাচ্ছে সেনাসদস্যরা। করোনা মোকাবেলায়  সেনাবাহিনী নিজস্ব অর্থায়নে ত্রান তৎপরতা, গণপরিবহন মনিটারিং, সচেতনতামূলক প্রচারণা ও স্বাস্থ্যবিধি সংক্রান্ত নীতিমালা বাস্তবায়ন এবং বিনামূল্যে স্বাস্থ্যসেবা প্রদানসহ সকল প্রকার জনকল্যাণমূলক কার্যক্রম অব্যাহত রেখেছে যশোর সেনানিবাসের সেনাসদস্যরা। পাশাপাশি উপকূলীয় অঞ্চলের মানুষদের বন্যা এবং জলোচ্ছ্বাস  থেকে রক্ষা করতে খুলনার  বিভিন্ন পয়েন্টে বেড়িবাঁধ নির্মাণ কাজ অব্যাহত রেখেছে যশোর সেনানিবাসের সেনাসদস্যরা। সংবাদ বিজ্ঞপ্তি

রাজনীতিতে পরিবর্তন জরুরি হয়ে গেছে – ফখরুল

ঢাকা অফিস ॥ দেশে রাজনীতির পরিবর্তনটা জরুরি হয়ে গেছে এমন মন্তব্য করে বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর বলেছেন, বিশ্বে রাষ্ট্র চিন্তা, অর্থনৈতিক চিন্তা, দর্শন, সমাজনীতির একটা পরিবর্তন আসবে। তবে সেটা কী আসবে জানি না। আর আমাদের দেশে রাজনীতির ক্ষেত্রে পরিবর্তনটা খুব বেশি জরুরি হয়ে গেছে। মানুষের বেঁচে থাকার জন্য, তার বেঁচে থাকার নিশ্চয়তার জন্য, সবশেষে মানুষের সাংবিধানিক যে অধিকার সে অধিকার নিশ্চিত করার জন্য। গতকাল সোমবার বিএনপি চেয়ারপারসেনর রাজনৈতিক কার্যালয়ে অনুষ্ঠিত সংবাদ সম্মেলনে তিনি এসব কথা বলেন। দেশে আওয়ামী লীগ নেই মন্তব্য করে ফখরুল বলেন, কোথায় আওয়ামী লীগ? আমি তো আওয়ামী লীগকে দেখি না। আজকে আওয়ামী লীগ কি দেশ চালায়? নাকি দেশে আওয়ামী লীগ আছে? দেশতো চালায় অন্যরা। তিনি বলেন, আজকে এই মহামারির সময়ে কতগুলো খাতে ব্যয় করা হচ্ছে। এগুলো কিন্তু ব্যয় করার প্রয়োজন নেই। কোথাও কোনো জবাবদিহিতা নেই। যা খুশি তাই করা হচ্ছে। এই কথাগুলো আমাদের না। এই কথাগুলো নিরপেক্ষ সংস্থার। টিআইবি বলেছে, এই মহামারিতে বাংলাদেশে যতোটা দুর্নীতি হয়েছে এমন দুর্নীতি মনে হয় পৃথিবীর কোথাও হয়নি। মিনিমাম যে বিবেক বা মানুষের জন্য যে মিনিমাম ভালোবাসা দরকার সেটা পর্যন্ত তাদের নেই। বিএনপি মহাসচিব বলেন, এই কোভিডের মধ্যেও আমরা আমাদের কাজ করেছি। কাজ করার চেষ্টা করছি। একটা প্রতিকূল অবস্থার মধ্যে কিন্তু আমরা লড়ে যাচ্ছি। তিনি বলেন, দেশের এই অবস্থার কি শুধু বিএনপির সমস্যা? না, বাংলাদেশের সমস্যা। আপনার অধিকারের যে নিশ্চয়তা, আপনার আদালতের যে স্বাধীনতা এটা কি শুধু আমাদের বিএনপির সমস্যা? এই সমস্যা দেশের সব মানুষের। এই যে আপনাদের প্রেসের কথাই চিন্তা করেন। আপনারা না বললেওতো আমরা জানি। কিভাবে আপনাদের প্রেসকে নিয়ন্ত্রণ করা হচ্ছে। এই বিষয়গুলো আমরা সবাই মিলে যদি সুরাহা না করি, এসব সমস্যায় অতীতে কিন্তু তরুণরা, মেহনতি মানুষরাই কিন্তু সামনে এসেছেন। তাই এখনও আমি বলি, দেশের তরুণ, মিডল ক্লাস মানুষদেরই সামনে এগিয়ে আসতে হবে। তাদেরকেই এই দেশটাকে রক্ষা করতে হবে। বিএনপিকে রক্ষা করার দরকার নেই। দেশটাকে রক্ষা করেন। তাহলে বিএনপির রক্ষা হবে, আওয়ামী লীগের রক্ষা হবে, সরকার রক্ষা হবে।

আলমডাঙ্গায় ডেইরি ও  পোল্ট্রি খামারিদের প্রণোদনা প্রদানের তালিকা প্রস্তুত বিষয়ে অবহিতকরণ সভা

আলমডাঙ্গা অফিস ॥ আলমডাঙ্গায় ডেইরি ও পোল্ট্রি খামারিদের মাঝে বিশ্বব্যাংকের প্রণোদনা প্রদানের তালিকা প্রস্তুতের বিষয়ে সাংবাদিকদের নিয়ে এক অবহিতকরণ সভা অনুষ্ঠিত হয়েছে। ডেইরি ও পোল্ট্রি খামারি উদ্যোক্তাদের ক্ষতি কাটিয়ে মনোবল বৃদ্ধি ও তাদের ব্যবসা চালু রাখার নিমিত্তে এলডিডিপি প্রকল্পের আওতায় বিশ্বব্যাংকের অর্থায়নে প্রাণিসম্পদ বিভাগ সুফলভোগী খামারি উদ্যোক্তাদের তালিকা প্রস্তুত করছে। রবিবার আলমডাঙ্গা প্রাণিসম্পদ অফিসে অবহতিকরণ সভায় প্রধান অতিথি ছিলেন উপজেলা নির্বাহী অফিসার লিটন আলী। উপজেলা প্রাণিসম্পদ কর্মকর্তা আব্দুল্লাহ হিল কাফির সভাপতিত্বে বিশেষ অতিথি ছিলেন উপজেলা প্রাণিসম্পদ সম্প্রসারণ কর্মকর্তা ডা. শরিয়তুল্লাহ, ডা. শাহাদৎ জামান  বেলাল। সভায় উপস্থিত ছিলেন আলমডাঙ্গা প্রেসক্লাবের সভাপতি খন্দকার শাহ আলম মন্টু, সাধারণ সম্পাদক হামিদুল ইসলাম আজম, দৈনিক মাথাভাঙ্গা পত্রিকার ব্যুরো প্রধান রহমান মুকুল, সহকারী ব্যুরো প্রধান শরিফুল ইসলাম রোকন, দৈনিক স্পন্দনের প্রতিনিধি জামসিদুল হক মুনি,  দৈনিক পশ্চিমাঞ্চলের ব্যুরো প্রধান প্রশান্ত বিশ্বাস, দৈনিক পশ্চিমাঞ্চলের সহকারী ব্যুরো প্রধান গোলাম সরোয়ার ও অনলাইন নিউজ পোর্টাল সাম্প্রতিকী ডট কমের সিনিয়র রিপোর্টার মাসুদ রানা তুহিন।

 

ঝিনাইদহে বিদ্যুতস্পৃষ্টে রাজমিস্ত্রীর মৃত্যু

ঝিনাইদহ প্রতিনিধি ॥ ঝিনাইদহ শহরের স্টেডিয়াম পাড়া এলাকায় বিদ্যুৎস্পৃষ্টে ফয়সাল হোসেন (৩০) নামের এক রাজমিস্ত্রীর মৃত্যু হয়েছে। সোমবার বিকেলে এ ঘটনা ঘটে। সে ঝিনাইদহ সদর উপজেলার কালিকাপুর গ্রামের আশরাফ হোসেনের ছেলে। প্রত্যক্ষদর্শীরা জানায়, স্টেডিয়াম পাড়ার শফিকুল আলমের বাসায় কাজ করছিল ফয়সাল ও তার সহযোগি। এসময় বিদ্যুতের তারের সাথে হাত লেগে বিদ্যুতায়িত হয়ে গুরুতর আহত হয়। সেখান থেকে তাকে উদ্ধার করে ঝিনাইদহ সদর হাসপাতালে নিয়ে গেলে চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষণা করেন। ঝিনাইদহ সদর থানার ওসি মিজানুর রহমান ঘটনার সত্যতা স্বীকার করেছেন।

সিনহা হত্যার প্রতিবেদন বিশ্লেষণ করে প্রয়োজন অনুযায়ী পদক্ষেপ – স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী

ঢাকা অফিস ॥ সেনাবাহিনীর অবসরপ্রাপ্ত মেজর সিনহা মো. রাশেদ খান হত্যাকান্ডের ঘটনার তদন্ত প্রতিবেদন বিশ্লেষণ করে প্রয়োজন অনুযায়ী কাজ হবে বলে জানিয়েছেন স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান কামাল। গতকাল সোমবার সচিবালয়ে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর কাছে তদন্ত প্রতিবেদন হস্তান্তর করেন কমিটির প্রধান চট্টগ্রামের অতিরিক্ত বিভাগীয় কমিশনার (উন্নয়ন) ও যুগ্মসচিব মোহাম্মদ মিজানুর রহমান। প্রতিবেদনে ১৩টি সুপারিশ রয়েছে। মূল প্রতিবেদন ৮০ পৃষ্ঠার, তবে এরসঙ্গে ৫৮৬ পৃষ্ঠার সংযুক্তি রয়েছে। হত্যার সঙ্গে দায়ীদেরও চিহ্নিত করা হয়েছে বলে তদন্ত কমিটি সূত্রে জানা গেছে। তবে তদন্ত প্রতিবেদনের বিষয়বস্তু নিয়ে কোনো তথ্য দেননি স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী কিংবা কমিটি প্রধান। সিনহা হত্যার পর পরই চট্টগ্রামের অতিরিক্ত বিভাগীয় কমিশনারকে আহ্বায়ক করে চার সদস্যের তদন্ত কমিটি গঠন করা হয় জানিয়ে মন্ত্রী বলেন, সরেজমিন তদন্ত করে কারণ, উৎস, ভবিষ্যতে এ ধরনের ঘটনা প্রতিরোধে করণীয় নিয়ে সার্বিক বিষয় বিশ্লেষণ করে সুস্পষ্ট মতামতসহ প্রতিবেদন দিতে বলা হয়। তিনি বলেন, কমিটি পূর্ণাঙ্গ তদন্ত রিপোর্ট নিয়ে এসেছে। রিপোর্টে কী আছে আমরা এখনও দেখিনি। তারা আমাদের কাছে জমা দিয়ে তাদের কার্য শেষ হয়েছে জানিয়ে যাবেন। পরবর্তী সময়ে আমাদের সচিব মহোদয় এগুলো বিশ্লেষণ করে যেখানে যেটা প্রয়োজন সেই অনুযায়ী কাজ করবেন। আপনারা নিশ্চয় জানেন, এটার পুলিশি তদন্ত চলছে, আদালতের নির্দেশনা অনুযায়ী। সেই কারণে আমরা প্রকাশ্যে কিছু জানাতে পারবো না। আমরা আদালতকে এটার সম্বন্ধে জানিয়ে দেব, আদালত মনে করলে এটাকে আমাদের কাছ থেকে অফিসিয়ালি নিয়ে যাবেন, এটাই হয়ে থাকে। আসাদুজ্জামান খান বলেন, আদালত তদন্তের জন্য হয়তো এটা নিয়েও নিতে পারেন। আমরা এ সম্পর্কে কিছু জানি না, এটা আদালতের এখতিয়ার। যাদের নামে রিপোর্ট আসবে, পরবর্তীতে করণীয় কী আপনাদের জানাবো। এই হত্যা পরিকল্পিত কি না- জানতে চাইলে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, তদন্ত রিপোর্ট আমার কাছে মাত্র এলো। এর ভেতর কী লেখা আছে, কী উল্লেখ আছে- আমরা তো জানি না কিছু। আমরা বের করে নেই, আমরা এগুলো স্টাডি করি তারপরে আপনাদের জানাতে পারবো। সুপারিশ কী এসেছে- এ বিষয়ে তিনি বলেন, ‘আমরা তো এখনও দেখিনি। বন্ধ অবস্থায় আছে।’ এ ধরনের ঘটনা যেন আর না ঘটে সেজন্য কী উদ্যোগ নিয়েছেন- এ বিষয়ে আসাদুজ্জামান খান বলেন, দেখুন, এটা দুঃখজনক ঘটনা ঘটেছে। আমরা মনে করি এ ধরনের ঘটনা আর না ঘটুক। কেন ঘটেছে, কীভাবে ঘটেছে এগুলো পুরোপুরি বিশ্লেষণ এখানে রয়েছে। সেগুলো আমাদের স্টাডি করতে হবে। আর আমাদের নিরাপত্তা বাহিনী কাজ করছে, সবাই সজাগ রয়েছে, আমরা মনে করি যে এ ধরনের ঘটনা আর যাতে না ঘটে, আমরা সবাই সজাগ রয়েছি। দুই বাহিনীর (পুলিশ ও সেনাবাহিনী) মধ্যে গুজব ছড়িয়ে উত্তেজনা সৃষ্টি করা হচ্ছে- এ বিষয়ে দৃষ্টি আকর্ষণ করা হলে মন্ত্রী বলেন, দুই বাহিনীর মধ্যে গুজব ছড়িয়ে এদের অসস্তুষ্ট করবে আমরা এ ধরনের উপাদান পাইনি। আমরা মনে করি চকৎকার একটি পরিবেশ রয়েছে, আমরা দেখেছি পুলিশ প্রধান ও সামরিক বাহিনীর প্রধান দু’জনে মিলে কক্সবাজারে গিয়েছেন। তারা ব্রিফ করেছেন, কাজেই দুই বাহিনীর ভেতরে কিছু মতপার্থক্য রয়েছে এগুলো সত্য নয়।

খালেদার জন্মদিনে উপহার পাঠানোয় চীনা দূতাবাসের দুঃখ প্রকাশ

ঢাকা অফিস ॥ বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার জন্মদিনে উপহার পাঠানোর জন্য দুঃখ প্রকাশ করেছে চীনা দূতাবাস। ঢাকার চীনা দূতাবাসের পক্ষ থেকে একে ‘ভুল’ উল্লেখ করা হয়েছে। সূত্র জানায়, পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় ঢাকায় চীনা দূতাবাসের সামনে বিষয়টি উত্থাপন করলে তারা এ ঘটনায় দুঃখ প্রকাশ করে। গত ১৫ আগস্ট জন্মদিন পালন করেন খালেদা জিয়া। তার এই বিতর্কিত জন্মদিনে উপহার পাঠায় চীনা দূতাবাস। বিষয়টি জানাজানি হওয়ার পর পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় এ ব্যাপারে খোঁজ নেয়। অবশেষে উপহার পাঠানোর ঘটনায় চীন দূতাবাসের কর্মকর্তারা দুঃখ প্রকাশ করেছেন। এক কূটনৈতিক সূত্র জানায়, চীনা দূতাবাস পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়কে জানিয়েছে, তারা বিষয়টির সংবেদনশীলতা ধরতে না পেরে এই ‘ভুল’ করেছে এবং এ নিয়ে তাদের পক্ষে যথেষ্ট গবেষণা করা হয়নি। এর জন্য চীনা দূতাবাস ‘ক্ষমা’ চেয়েছে। পরবর্তীতে তারা এ বিষয়ে সতর্ক থাকবেন। জন্মদিনে বিএনপি চেয়ারপারসনের কাছে নিয়মিত এ শুভেচ্ছা পাঠিয়ে আসলেও তারা ‘ভুয়া জন্মদিনের’ বিষয়টি সম্পর্কে অবগত ছিল না বলে জানান। ১৯৭৫ সালের ১৫ আগস্ট একদল বিপথগামী সেনা সদস্য বাংলাদেশের স্বাধীনতার স্থপতি শেখ মুজিবুর রহমানকে সপরিবারে হত্যা করে। এ কারণে ১৫ আগস্ট জাতীয় শোক দিবস যথাযোগ্য শ্রদ্ধা ও মর্যাদার সাথে দিনটি পালন করা হয়। কিন্তু এ দিন বেগম খালেদা জিয়া জন্মদিন পালন করে থাকেন। আওয়ামী লীগের পক্ষ থেকে দাবি করা হয়, এটা খালেদা জিয়ার প্রকৃত জন্মদিন নয়।

কালুখালীতে আওয়ামীলীগের মাদকবিরোধী সংবাদ সম্মেলন

কালুখালী প্রতিনিধি ॥ সন্ত্রাস ও মাদকের বিরুদ্ধে সর্বস্তরের জনগণকে উদ্বুদ্ধ ও গণআনন্দোলন গড়ে তোলার লক্ষ্যে রাজবাড়ী জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি ও রাজবাড়ী-২ আসনের সংসদ সদস্য বীর মুক্তিযোদ্ধা মোঃ জিল্লুল হাকিমের নির্দেশনায় কালুখালী উপজেলা আওয়ামীলীগের আয়োজনে সাতটি ইউনিয়নে স্বাস্থ্যবিধি মেনে মানববন্ধন অনুষ্ঠিত হয়েছে। গতকাল সোমবার সকাল ১০টায় জেলা আওয়ামী লীগের অন্যতম সদস্য আশিক মাহমুদ মিতুলের সহযোগীতায় কালুখালী উপজেলার সাতটি ইউনিয়ন রতনদিয়া, কালিকাপুর, বোয়ালিয়া, মদাপুর, মাঝবাড়ী, মৃগী, সাওরাইল একসাথে ঘণ্টাব্যাপী এই মানববন্ধন অনুষ্ঠিত হয়। সাতটি ইউনিয়নে হাজারো মানুষের উপস্থিতিতে মানবন্ধন শেষে কালুখালী উপজেলা আওয়ামী লীগের দলীয় কার্যালয়ে সংবাদ সম্মেলন অনুষ্ঠিত হয়। উপজেলা আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক খায়রুল ইসলাম খায়েরের সঞ্চালণায় কালুখালী উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি ও কালিকাপুর ইউনিয়নের চেয়ারম্যান আতিউর রহমান নবাবের সভাপতিত্বে সংবাদ সম্মেলনে উপস্থিত ছিলেন কালুখালী উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান আলিউজ্জামান চৌধুরী (টিটো), পাংশা উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান অধ্যাপক মো: ফরিদ হাসান ওদুদ, পাংশা উপজেলা আ’লীগের সভাপতি খন্দকার সাইফুল ইসলাম, সাধারণ সম্পাদক এ এস এম শফিউদ্দিন সহ সাত ইউনিয়নের আওয়ামীলীগের সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদবৃন্দ। সম্মেলনে লিখিত বক্তব্য পাঠ করেন কালুখালী উপজেলা আ’লীগের সভাপতি আতিউর রহমান নবাব। সম্মেলন শেষে রাজবাড়ী-২ আসনের সংসদ সদস্য মো: জিল্লুল হাকিম ভিডিও কনফারেন্সে বলেন- সন্ত্রাস ও মাদকের বিরুদ্ধে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার জিরো টলারেন্স রয়েছে। তারই ধারাবাহিকতায় আমরা একটি কর্মসূচির আয়োজন করি। কিন্তু প্রশাসন সেই কর্মসূচিকে নগ্ন হস্তক্ষেপ করেছে। পুলিশ আমাদেরই একটি অংশ। অথচ এই কর্মসূচি বানচালের জন্য কিছু কিছু পুলিশ ষড়যন্ত্র করছে। কাদের স্বার্থ হাসিলের জন্য তারা কাজ করছে সেটি খতিয়ে দেখা হবে। কিছু দুর্নীতিবাজ পুলিশ সদস্য পুরো পুলিশবাহিনীকে প্রশ্নবিদ্ধ করছে। তারা জামাত-শিবির ও বিএনপিকে প্রশয় দিচ্ছে। এ সময় মাঝবাড়ী ইউনিয়নের বেতবাড়ীয়া গ্রামের মুক্তিযোদ্ধা পরিবারের সন্তান যুবলীগের সদস্য রবিউল ইসলামের হত্যাকান্ডের তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানান এবং হত্যাকান্ডের সাথে প্রকৃত জড়িতদের আইনের আওতায় আনারও আহবান জানান এমপি বীর মুক্তিযোদ্ধা মোঃ জিল্লুল হাকিম। এই মানববন্ধনে একাত্বতা ঘোষণা করে অংশগ্রহণ করেন আওয়ামীলীগের বিভিন্ন অংগ-সংগঠন, বাংলাদেশ পূজা উদযাপন পরিষদ ও বাংলাদেশ হিন্দু-বৌদ্ধ-খ্রিস্টান ঐক্য পরিষদ কালুখালী শাখা, কালুখালী উপজেলা কমান্ড বাংলাদেশ মুক্তিযোদ্ধা সংসদ, রতনদিয়া বাজার শিল্প ও বনিক সমিতিসহ বিভিন্ন সামাজিক ও সাংস্কৃতিক সংগঠন।

জাতীয় মানবাধিকার সমিতি ও দৈনিক কুষ্টিয়ার খবর পত্রিকার উদ্দ্যোগে বৃক্ষরোপন ও চারা বিতরণ

বাংলাদেশ জাতীয় মানবাধিকার সমিতি ও দৈনিক কুষ্টিয়া খবর পত্রিকার  উদ্দ্যোগে বৃক্ষরোপণ ও বিতরন কর্মসূচি উদ্বোধন করেন বাংলাদেশ জাতীয় মানবাধিকার সমিতি কুষ্টিয়া জেলা সভাপতি জান্নাতুল ফেরদৌস জিনিয়া। কর্মসূচি পরিচালনা ও সার্বিক সহযোগিতা করেন সমিতির সদর উপজেলার সদ্য সভাপতি ও  দৈনিক কুষ্টিয়ার খবর’র ব্যবস্থপনা সম্পাদক এ.এম সাকলায়েন এলিন, কুষ্টিয়া শহর শাখার সাধারন সম্পাদক ও সাংবাদিক এমদাদুল হক মিলন। গতকাল কুষ্টিয়া সদর উপজেলার হাটশ হরিপুর ইউনিয়নের বোয়াইলদাহ হাজিপাড়া মোড়ের রাস্তার দুই পাশ দিয়ে বৃক্ষের চারারোপনের মাধ্যমে বৃক্ষরোপণ অভিযান শুরু করেন। বৃক্ষ  রোপনের পাশাপাশি শতাধিক চারা বিতরন করা হয়।  এ সময় উপস্থিত ছিলেন বাংলাদেশ জাতীয় মানবাধিকার সমিতি কুষ্টিয়া জেলা শাখার যুগ্ন সাধারন সম্পাদক শেখ শায়েদ হোসেন প্রেম, রাজিবুল ইসলাম মানিক , সোলেইমান হোসেন লিটন, লিটন আলী (শিক্ষক), সমাজ সেবক সুজন মাহমুদ হামজা, কবি আরিফ, শিক্ষানুরাগি আবুল কালাম আজাদ, বিশিষ্ট সমাজসেবক দেলোয়ার হোসেন দুলাল, রওশন মন্ডল, ফারুক হোসেন, জনিসহ আরোও অনেকে। সংবাদ বিজ্ঞপ্তি

ঝিনাইদহে করোনা প্রতিরোধে সচেতনতামুলক গম্ভীরা পরিবেশন

ঝিনাইদহ প্রতিনিধি ॥ করোনা ভাইরাসের সংক্রমন প্রতিরোধে ঝিনাইদহে সচেতনতামুলক গম্ভীরা পরিবেশন করা হয়েছে। সোমবার বিকেলে শহরের পায়রা চত্বরে এ গম্ভীরা পরিবেশন করে কথন সাংস্কৃতিক সংসদ (কসাস’র) সদস্যরা। এর আগে জেলা প্রশাসক সরোজ কুমার নাথ ও জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ও পৌর মেয়র সাইদুল করিম মিন্টু অনুষ্ঠানের উদ্বোধন করেন। কসাসের সহ-সভাপতি শফিক মেহমুদের রচনায় করোনার সংক্রমনে করনীয় নানা বিষয় গম্ভীরাতে তুলে ধরা হয়। শহরের চলাচলকারী পথচারীরা এ পরিবেশনা উপভোগ করেন।

এমপি’র  ফুফাতো ভাই হাসিনুর হত্যা

দৌলতপুরে ইউনিয়ন চেয়ারম্যানদের প্রতিবাদ সভা

দৌলতপুর প্রতিনিধি ॥ কুষ্টিয়া-১ দৌলতপুর আসনের এমপি এ্যাড. সরওয়ার জাহান বাদশার ফুপাতো ভাই হাসিনুর রহমান হত্যার প্রতিবাদে দৌলতপুরে ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যানদের প্রতিবাদ সভা অনুষ্ঠিত হয়েছে। গতকাল সোমবার বেলা ১১টায় দৌলতপুর উপজেলা পরিষদ মিলনায়তনে এ প্রতিবাদ সভা অনুষ্ঠিত হয়। হোগলবাড়িয়া ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান সেলিম চৌধুরীর সভাপতিত্বে প্রতিবাদ সভায় বক্তব্য রাখেন- দৌলতপুর কলেজের অধ্যক্ষ মো. ছাদিকুজ্জামান খান সুমন, দৌলতপুর উপজেলা পরিষদের ভাইস চেয়ারম্যান সাক্কির আহমেদ, মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান সোনালী খাতুন আলেয়া, দৌলতপুর আওয়ামী লীগের তথ্য ও গবেষণা সম্পাদক টিপু নেওয়াজ, মুক্তিযোদ্ধা হায়দার আলী, আদাবাড়িয়া ইউপি চেয়ারম্যান মকবুল হোসেন, খলিশাকুন্ডি ইউপি চেয়ারম্যান সিরাজুল ইসলাম, প্রাগপুর ইউপি চেয়ারম্যান আশরাফুজ্জামান মুকুল সরকার, বোয়ালিয়া ইউপি চেয়ারম্যান মহিউদ্দিন বিশ^াস, পিয়ারপুর ইউপি চেয়ারম্যান আবু ইউসুফ লালু, ফিলিপনগর ইউপি চেয়ারম্যান একেএম ফজলুল হক কবিরাজ, রিফায়েতপুর ইউপি চেয়ারম্যান জামিরুল ইসলাম বাবু, মরিচা ইউপি চেয়ারম্যান শাহ আলমগীর, দৌলতপুর ইউপি চেয়ারম্যান মহিউল ইসলাম মহি, রামকৃষ্ণপুর ইউপি চেয়ারম্যান সিরাজ মন্ডল, দৌলতপুর ছাত্রলীগের সাবেক সভাপতি সরদার আতিয়ার রহমান, দৌলতপুর যুবলীগের সাধারণ সম্পাদক আব্দুল কাদের, আওয়ামী লীগ নেতা ওরুশ কবিরাজ, মহব্বত হোসেন ও মাহবুব মাষ্টারসহ স্থানীয় সুধীজন। দৌলতপুর ইউনিয়ন চেয়ারম্যান ও মেম্বরদের আয়োজনে দুপুর ২টা পর্যন্ত চলা প্রতিবাদ সভায় হাসিনুর রহমান হত্যাকান্ডের নেপথ্য পরিকল্পনাকারী ও ইন্ধনদাতাদের খুঁজে বের করে তাদের আইনের আওতায় আনার দাবি জানানো হয়। উল্লে¬খ্য, গত ২৯ আগষ্ট সকাল সাড়ে ৭টার দিকে নিজ বাড়ির পার্শ্ববতী ফিলিপনগর ইউনিয়নের ইসলামপুর ঘোষপাড়া মোড়ে মজিবর রহমান পেছন দিক থেকে অতর্কিত হামলা চালিয়ে হাসিনুর রহমানকে ধারাল হাসুয়া দিয়ে এলোপাতাড়িভাবে কুপিয়ে হত্যা করে। পরে দৌলতপুর থানা পুলিশ ইসলাম ঘোষপাড়ায় অভিযান চালিয়ে নিজ বাড়ি থেকে ঘাতক মজিবর রহমানকে আটক করে।

বর্তমান পরিস্থিতি দেখে আত্মতুষ্টি নয়, করোনা প্রাণঘাতী রূপ নিতে পারে – কাদের

ঢাকা অফিস ॥ যেকোনো সময়ে করোনা ভাইরাস সংক্রমণ প্রাণঘাতী রূপ নিতে পারে বলে আশঙ্কা প্রকাশ করেছেন সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী এবং আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের। সংক্রমণের বর্তমান পর্যায়ে নিয়ন্ত্রিত অবস্থা দেখে সবাইকে আত্মতুষ্টিতে ভোগা বা অবহেলা না করার অনুরোধও জানান তিনি। গতকাল সোমবার সংসদ ভবন এলাকার সরকারি বাসভবনে এক প্রেসবিফ্রিংয়ে আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক এ আশঙ্কা প্রকাশ করেন। সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের বলেন, করোনার সংক্রমণ দেশজুড়ে কমে এসেছে এ কথা এখনও বলা যাচ্ছে না স্পষ্ট করে। এর মধ্যে গত রোববার গবেষকরা জানিয়েছেন বাংলাদেশে করোনা ভাইরাস দ্রুতগতিতে রূপ পরিবর্তন করছে। বিশ্বে রূপান্তরের হার প্রায় সাত শতাংশ হলেও এদেশে হার প্রায় ১৩ শতাংশ। এ ছাড়া অনেক দেশে করোনার সংক্রমণে ‘সেকেন্ড ওয়েভ’ শুরু হয়েছে। আমি দেশবাসীকে সংক্রমণের বর্তমান পর্যায়ে নিয়ন্ত্রিত অবস্থা দেখে আত্মতুষ্টিতে ভোগা বা অবহেলা না করার অনুরোধ করছি, যেকোনো সময়ে করোনা সংক্রমণ প্রাণঘাতী রূপ নিতে পারে। তাই সবাইকে মাস্ক পরিধানসহ স্বাস্থ্যবিধি প্রতিপালনে সর্বোচ্চ সতর্ক থাকার আহ্বান জানাচ্ছি। আমাদের পার্শ্ববর্তী দেশে প্রায় ৯০ হাজার রোগী গত ২৪ ঘণ্টায় শনাক্ত হয়েছে। ব্রাজিলের অতিরিক্ত সংক্রমণের ধাক্কা প্রতিবেশী আর্জেন্টিনাতে গিয়েও ঠেকেছে। বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীরকে উদ্দেশ করে ওবায়দুল কাদের বলেন, মির্জা ফখরুল সাহেবকে বলতে চাই, রাজনীতিতে অশান্তির বিষবাষ্প আপনারাই ছড়িয়েছেন। সন্ত্রাস, ষড়যন্ত্র আর হত্যার রাজনীতির পেটেন্ট আপনারাই। শেখ হাসিনা বিভেদের রাজনীতিতে বিশ্বাসী নয়। আপনারাই বিভেদের রাজনীতির ধারক ও বাহক। সম্প্রীতির বাংলাদেশের মূলে আপনারাই বার বার কুঠারাঘাত করেছেন। সরকারের সমালোচনা করতে গিয়ে দেশকে ছোট করছেন। নেতিবাচক রাজনীতি ও মিথ্যাচার আপনাদেরকে আগের চেয়ে জনবিচ্ছিন্ন করে তুলছে এবং এভাবে চলতে থাকলে আপনারা ক্রমশ অপ্রাসঙ্গিক হয়ে পড়বেন। তিনি বলেন, বিএনপি মহাসচিব অভিযোগ করেছেন, সরকার নাকি অর্থনীতি ধ্বংস করছে। বিশ্বব্যাপী বাংলাদেশ আজ উন্নয়ন ও অগ্রগতির রোল মডেল হিসেবে স্বীকৃত। অর্থনীতির যে সক্ষমতা এবং চালকসমূহের যে ইতিবাচক ধারা তা দেখেও বিএনপি নেতারা মিথ্যাচার করছেন। করোনায় বিশ্ব অর্থনীতির স্থবিরতার মাঝেও অতিসম্প্রতি রেমিট্যান্স প্রবাহ ও রফতানি করে বৈদেশিক মুদ্রার রিজার্ভে রেকর্ড গড়েছে বাংলাদেশ। দেশের অর্থনীতি দেশরতœ শেখ হাসিনার নেতৃত্বে এখন শক্ত ভিতের ওপর প্রতিষ্ঠিত। আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক বলেন, শতকরা ৮ শতাংশের ওপর প্রবৃদ্ধি বিএনপি কখনো নিজেদের আমলে ভাবতে পেরেছিল? পাঁচ লাখ ৬৮ হাজার কোটি টাকার বাজেট প্রণয়ন এবং বাস্তবায়ন কি দুর্বল অর্থনীতির পরিচয় বহন করে? মাথাপিছু আয় বর্তমানে দুই হাজার ৬৪ ডলার। অর্থনীতি এবং সামাজিক উন্নয়নের প্রতিটি সূচকে বাংলাদেশের অভূতপূর্ব সাফল্য বিএনপি দেখতে পায় না। মানুষের জীবনমান উন্নয়ন, দারিদ্র্য হ্রাস, কর্মসংস্থান বৃদ্ধি, আমদানি নির্ভরতার বিপরীতে রফতানি বৃদ্ধি, বৈদেশিক কর্মসংস্থান বৃদ্ধি, খাদ্য নিরাপত্তা অর্জন, শিল্পের বিকাশসহ প্রতিটি সূচকে ইতিবাচক অর্জন বিশ্ব অর্থনীতিতে বাংলাদেশ আজ শক্তিশালী অবস্থানে। পাকিস্তান থেকে আর্থ-সামাজিক প্রতিটি সূচকে বাংলাদেশ এগিয়ে রয়েছে বলে তারা তাদের পার্লামেন্টে বাংলাদেশের প্রশংসা করছে। যারা এ দেশের মুক্তির পথে বাধা ছিল, তারাও যখন বাংলাদেশের অর্থনীতি ও সমৃদ্ধির অগ্রযাত্রায় প্রশংসায় পঞ্চমুখ, তখনও বিএনপি অর্থনীতির ভঙ্গুরতা দেখে। ইতিবাচক কিছু দেখে না। তাদের রাজনীতি এখনও নেতিবাচকতার আবর্তে ঘুরপাক খাচ্ছে, বলেন সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী।

কুষ্টিয়া পৌরসভার সাবেক চেয়ারম্যান ম. আ রহিমের ৩৩তম মৃত্যুবার্ষিকী পালন

নিজ সংবাদ ॥ কুষ্টিয়া পৌরসভার সাবেক চেয়ারম্যান ম. আ রহিমের ৩৩তম মৃত্যুবার্ষিকী পালন করা হয়েছে। দিনটি যথাযোগ্য মর্যাদায় পালনের জন্য পারিবারিক উদ্যোগে ৭ সেপ্টেম্বর সোমবার বাদ আসর কুষ্টিয়া শহরস্থ আড়ুয়াপাড়া ছাখাবী মসজিদে মিলাদ মাহ্ফিলের আয়োজন করা হয়। উক্ত মিলাদ মাহ্ফিলে মরহুমের বিদেহী আত্মার মাগফিরাত কামনা করে দোয়া করা হয়। দোয়া পরিচালনা করেন আড়ুয়াপাড়া ছাখাবী মসজিদে ঈমাম শফিকুল ইসলাম। এ সময় ম. আ রহিমের জ্যেষ্ঠ পুত্র পৌর ৯ নং ওয়ার্ড আওয়ামীলীগের সভাপতি ও কুষ্টিয়া চেম্বার অব কমার্স এন্ড ইন্ডাষ্ট্রি’র পরিচালক হাজী মোঃ আখতারুজ্জামান, পৌর ৯ নং ওয়ার্ড আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক রইচ উদ্দিন আহমেদ, সহ-সভাপতি ডাঃ আব্দুল মজিদ, সাংগঠনিক সম্পাদক শামছুল আরেফিন খান, আওয়ামীলীগ নেতা হারুন অর রশিদ মিহাত, আরিক মাহমেদ অন্তু, স্বেচ্ছাসেবকলীগ নেতা ফয়সাল হোসেন চঞ্চল, যুবলীগ নেতা শরিফুল ইসলাম বার্মিজ, শহর ছাত্রলীগের আহবায়ক হাসিব কৌরাইশী, ছাত্রলীগ নেতা শৈয়েব সৈনিক সহপৌরবাসী ও শুভানুধ্যায়ীরা উপস্থিত ছিলেন। সার্বিক ব্যাবস্থাপনায় ছিলেন কুষ্টিয়া পৌরসভার সাবেক চেয়ারম্যান ম. আ রহিমের নাতী ছেলে কুষ্টিয়া চেম্বার অব কমার্স এন্ড ইন্ডাষ্ট্রি’র সাবেক পরিচালক ও যুবলীগ নেতা মোঃ রাকিবুজ্জামান সেতু। উল্লেখ্য, ব্যক্তি জীবনে অমায়িক সজ্জন ও সদালাপী ম. আ রহিম ছিলেন স্বাধীন বাংলাদেশের প্রথম জন নির্বাচিত পৌর চেয়ারম্যান। ১৯৩১ খ্রিষ্টাব্দের ৮ জানুয়ারি তিনি আড়ুয়াপাড়ার বিশিষ্ট সমাজসেবক জেহের আলী মন্ডল ও ময়জান নেছার পরিবারে জন্মগ্রহণ করেন। ছোট বেলা থেকেই তিনি সমাজ সেবামূলক ও সাংস্কৃতি কর্মকান্ডে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখতে সক্ষম হন। পঞ্চাশ থেকে ষাটের দশকের মাঝামাঝি পর্যন্ত তিনি মোহিনী মিল রঙ্গমঞ্চ ও পরিমল থিয়েটারের সাথে সক্রিয়ভাবে জড়িত ছিলেন। এ দু’টি প্রতিষ্ঠানের বেশ কিছু নাটকেও তিনি সফল ভাবে অভিনয় করেন। ষাটের দশকের প্রথম দিকে তিনি “পাকিস্থান যাদুকর পরিষদ” এর রাজশাহী বিভাগীয় প্রতিনিধি ছিলেন (কুষ্টিয়া তখন রাজশাহী বিভাগের অন্তর্গত ছিল)। সে সময় পাকিস্থানের খ্যাতনামা যাদুশিল্পী আলাদীনের ছাত্র হিসেবে কুষ্টিয়ার বিভিন্ন মঞ্চে ম্যাজিক প্রদর্শন করেন। ১৯৬০-১৯৬১ সময়ে তিনি পাঠাগার, সংস্কৃতি ও সমাজ সেবামূলক প্রতিষ্ঠান হিসাবে “মিতালী পরিষদ” প্রতিষ্ঠা করেন। এছাড়া তিনি ১৯৬৪ থেকে ১৯৭৩ সাল পর্যন্তকুষ্টিয়া ট্রান্সপোর্ট সিন্ডিকেট এর সাধারণ সম্পাদক এবং ১৯৭৫ সাল থেকে ১৯৭৭ সাল পর্যন্ত বিআরটিসি’র খুলনা বিভাগীয় পাবলিক ডাইরেক্টর ছিলেন। সামাজিক, সাংস্কৃতিক ও ব্যবসায়ী সংগঠনে জড়িত থাকার পাশাপাশি তিনি জনপ্রতিনিধি হিসাবে তার উপর অর্পিত দায়িত্ব পালন করে ব্যাপকভাবে প্রশংসিত হন। ১৯৫২ সাল থেকে তিনি একাধিক মেয়াদে পৌরসভার ওয়ার্ড কমিশনার ছিলেন। এছাড়াও ১৯৬৪’র ফেব্র“য়ারি থেকে ১৯৭১ এর মার্চ পর্যন্ত তিনি মিলপাড়া ওয়ার্ড চেয়ারম্যানের দায়িত্ব পালন করেন এবং দুই দফায় ১৯৭৪ থেকে ১৯৮২ পর্যন্তকুষ্টিয়া পৌরসভার নির্বাচিত পৌর চেয়ারম্যান ছিলেন। ১৯৮৭ সালের ৭ সেপ্টেম্বর তিনি চিকিৎসারত অবস্থায় ঢাকার পি.জি হাসপাতালে মৃত্যুবরণ করেন। তিনি মৃত্যুকালে স্ত্রী, দুই পুত্র, দুই কন্যা রেখে যান। তার জ্যেষ্ঠ পুত্র হাজী মোঃ আখতারুজ্জামান ব্যবসায়ী ও দি কুষ্টিয়া চেম্বার অব কমার্স এন্ড ইন্ডাষ্ট্রি’র পরিচালক এবং মন্ডল ফিলিং স্টেশন এর মালিক। কনিষ্ট পুত্র হাসান জামান লালন জেলা ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক ও কুষ্টিয়া সরকারি কলেজের ছাত্র সংসদের সাবেক জি.এস ছিলেন, তিনি ১৯৯৬ সালের ২৯ সেপ্টেম্বর ভারতের দার্জিলিংয়ের এক সড়ক দুর্ঘটনায় মারা যান। দি কুষ্টিয়া চেম্বার অব কমার্স এন্ড ইন্ডাষ্ট্রি এর সাবেক পরিচালক মোঃ রাকিবুজ্জামান সেতুর দাদা।

ইবি’র অধীনে অনুষ্ঠিত ফাযিল স্নাতক ৩য় বর্ষ (অনিয়মিত)পরীক্ষার ফল প্রকাশ

ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয়ের অধীনে অনুষ্ঠিত ফাযিল স্নাতক ৩য় বর্ষ (অনিয়মিত) পরীক্ষা-২০১৮ এর ফলাফল সিন্ডিকেটের অনুমোদন সাপেক্ষে সাময়িকভাবে গতকাল সোমবার দুপুর ১২টায় সারাদেশে একযোগে প্রকাশিত হয়েছে। এর আগে প্রো-ভাইস চ্যান্সেলর অফিস কক্ষে প্রো-ভাইস চ্যান্সেলর প্রফেসর ড. মোঃ শাহিনুর রহমানের হাতে আনুষ্ঠানিকভাবে ফলাফল তুলে দেন পরীক্ষা নিয়ন্ত্রক (ভারঃ) মোঃ আবুল কালাম আজাদ। এবার ফাযিল স্নাতক ৩য় বর্ষ (অনিয়মিত) পরীক্ষায় প্রায় ২১৫৩ জন পরীক্ষার্থী পরীক্ষায় অংশগ্রহন করেন এবং ২০৯৪ জন পরীক্ষার্থী পরীক্ষায় উত্তীর্ণ হয়। এ সময় উপস্থিত ছিলেন  প্রক্টর প্রফেসর ড. পরেশ চন্দ্র বম্মর্ণ, রেজিস্ট্রার (ভারঃ) এস.এম আব্দুল লতিফ, উপ-পরীক্ষা নিয়ন্ত্রক মোঃ আরিফ মোল্লা প্রমুখ। উল্লেখ্য যে, ফাযিল স্নাতক ৩য় বর্ষ (অনিয়মিত) পরীক্ষা-২০১৮ পরীক্ষার ফলাফল বিশ্ববিদ্যালয়ের ওয়েবসাইট িি.িরঁ.ধপ.নফ থেকে জানা যাবে। সংবাদ বিজ্ঞপ্তি