মুজিব জন্মশত বার্ষিকী উপলক্ষ্যে সেনাবাহিনীর উদ্যোগে বিনামূল্যে বিশেষ চিকিৎসা সেবা ও ঔষধ বিতরণ

প্রাণঘাতী করোনা মোকাবেলায় মানবতা আর দায়িত্ববোধের অপূর্ব সমন্বয়ের মাধ্যমে অসহায় মানুষের পাশে দাঁড়িয়ে করোনা যুদ্ধ জয়ের জন্য কাজ করে যাচ্ছে বাংলাদেশ সেনাবাহিনীর ৫৫ পদাতিক ডিভিশনের সেনাসদস্যরা। চলমান করোনা যুদ্ধে বাংলাদেশ সেনাবাহিনীর সিএমএইচসহ মেডিক্যাল কোরের সকল সদস্যগণ প্রথম সারির যোদ্ধা হিসেবে দায়িত্ব পালন করে যাচ্ছেন। এরই ধারাবাহিকতায় গতকাল ১৩ আগষ্ট (বৃহস্পতিবার) চুয়াডাঙ্গা  জেলার জীবননগর উপজেলায় ১১১ জন পুরুষ, ১৩০ জন নারী এবং ১৭ জন শিশুকে বিনামূল্যে স্বাস্থ্যসেবা দিয়েছে বাংলাদেশ  সেনাবাহিনীর ৫৫ পদাতিক ডিভিশনের ৬ জন বিশেষজ্ঞ চিকিৎসক ও ২ জন স্থানীয় চিকিৎসকের সমন্বয়ে গঠিত দল। সামাজিক দূরত্ব ও স্বাস্থ্যবিধি মেনে সকাল থেকে দিনব্যাপী এই মেডিক্যাল ক্যাম্পে অসহায়, দুস্থ মানুষ এবং অন্তঃসত্ত্বাদের সাধারণ স্বাস্থ্য পরীক্ষা এবং অস্থায়ী ল্যাবে বিভিন্ন পরীক্ষা নিরীক্ষা করা হয়। এছাড়াও প্রায় প্রতিদিনই দেশের প্রত্যন্ত অঞ্চলে হত দরিদ্র ও অসহায় মানুষের চিকিৎসা সেবা দিয়ে যাচ্ছে সেনাসদস্যরা। পাশাপাশি স্বাস্থ্যবিধি, সামাজিক দূরত্ব এবং মাস্ক ব্যবহার করতে প্রয়োজনীয় সচেতনতামূলক প্রচারণা, সত্যিকারের দুস্থ মানুষের বাড়ী বাড়ী গিয়ে ত্রাণ বিতরণ, সরকারী সকল নির্দেশনা বাস্তবায়ন, গণপরিবহন মনিটারিং, মাস্ক ও হ্যান্ড স্যানিটাইজার ব্যবহারে সাধারণ মানুষকে উৎসাহিত করা, অসহায় কৃষকদের মাঝে বিনামূল্যে বীজ বিতরণসহ নানাবিধ জনকল্যাণমূলক কার্যক্রম অব্যাহত রেখেছে যশোর সেনানিবাসের সেনাসদস্যরা। অন্যদিকে আম্পান মোকাবেলায় ক্ষতিগ্রস্থ উপকূলীয় এলাকায় বাঁধ নির্মাণ অব্যাহত রাখার পাশাপাশি জরুরী চিকিৎসা সহায়তা প্রদান, অসহায় মানুষের মাঝে সুপেয় পানি বিতরণ এবং ঘর-বাড়ী  মেরামতসহ নানামূখী জনসেবামূলক কার্যক্রম অব্যাহত রেখেছে যশোর সেনানিবাসের সেনাসদস্যরা। সংবাদ বিজ্ঞপ্তি

ক্ষমতার পরিবর্তন নয়, রাজনৈতিক কারণেই বঙ্গবন্ধুকে হত্যা করা হয় – প্রাণিসম্পদ মন্ত্রী

ঢাকা অফিস ॥ মৎস্য ও প্রাণিসম্পদ মন্ত্রী শ ম রেজাউল করিম বলেছেন, রাষ্ট্র ক্ষমতা থেকে সরানোর জন্য নয় বরং মুক্তিযুদ্ধের চেতনার বাংলাদেশকে ধ্বংস করার জন্য রাজনৈতিক উদ্দেশে ষড়যন্ত্রের মাধ্যমে বঙ্গবন্ধুকে হত্যা করা হয়। গতকাল বৃহস্পতিবার রাজধানীর রমনাস্থ মৎস্য ভবনে মৎস্য অধিদপ্তরের সম্মেলন কক্ষে জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ৪৫তম শাহাদৎবার্ষিকী ও জাতীয় শোক দিবস-২০২০ উপলক্ষে মৎস্য ও প্রাণিসম্পদ মন্ত্রণালয় আয়োজিত ‘বঙ্গবন্ধুর স্বপ্ন: আজকের বাংলাদেশ’ শীর্ষক আলোচনা সভা ও দোয়া মাহফিলে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন। মৎস্য ও প্রাণিসস্পদ মন্ত্রী বলেন, বঙ্গবন্ধুকে হত্যার জন্য বারবার ষড়যন্ত্র করা হয়। ১৯৬৯ সালের ২০ ডিসেম্বর বঙ্গবন্ধু জানতে পারেন তাকে হত্যার জন্য পাকিস্তান থেকে আততায়ী পাঠানো হয়েছে। ১৯৬৯ সালে আগরতলা ষড়যন্ত্র মামলার মাধ্যমে রাষ্ট্রদ্রোহীতার অভিযোগে তাকে হত্যার পরিকল্পনা হয়েছিল। ১৯৭০ সালের নির্বাচনী ক্যাম্পে তাকে হত্যার চেষ্টা করা হয়েছিল। ১৯৭২ সালের ১৩ জুলাই মেজর ফারুক ও ১৯৭৩ সালের ১১ জুলাই কর্নেল রশিদ বঙ্গবন্ধুকে হত্যার উদ্দেশে মার্কিন দূতাবাসের মাধ্যমে অস্ত্র কিনতে চেয়েছিলেন। ১৯৭৪ সালের ১৩ মে উচ্চ পর্যায়ের সেনা কর্মকর্তাদের নির্দেশে কর্নেল ফারুক শেখ মুজিব সরকারকে উৎখাতের জন্য আমেরিকার সাহায্য চেয়েছিলেন। ১৯৭৫ সালের ২০ মার্চ আর্মড রেজিমেন্টের সেকেন্ড ইন কমান্ড ফারুক রহমান জিয়াউর রহমানকে অভ্যুত্থানে নেতৃত্ব দিতে বলেছিলেন। জিয়াউর রহমান তাতে রাজি না হলেও ষড়যন্ত্র প্রতিহত করেননি। এরই ধারাবাহিকতায় ১৯৭৫ সালের ১৫ আগস্ট ভয়াবহ অভ্যুত্থান ঘটিয়ে বঙ্গবন্ধুকে হত্যা করা হয়। রেজাউল করিম বলেন, জিয়াউর রহমান রাষ্ট্রপতি হিসেবে বঙ্গবন্ধু হত্যাকে বৈধতা দিতে ১৯৭৯ সালের ৯ এপ্রিল পার্লামেন্টে আইন পাশ করেছিলেন। পরবর্তীতে বঙ্গবন্ধুর খুনিদের খালেদা জিয়া সরকার ১২টি রাষ্ট্রের হাইকমিশনে প্রতিষ্ঠিত করেছিলেন। তিনি বলেন, ইতিহাসের স্বপ্নভঙ্গ হতো যদি শেখ হাসিনা বাংলাদেশে ফিরে না আসতেন। ১৯৮১ সালে শেখ হাসিনা বাংলাদেশে ফিরে না এলে মুক্তিযুদ্ধের চেতনার বাংলাদেশ আর প্রতিষ্ঠিত হতো না। ইতিহাসের স্বপ্নভঙ্গের আশঙ্কা থেকে রক্ষা করেছিলেন বঙ্গবন্ধু কন্যা শেখ হাসিনা। রেজাউল করিম বলেন, বাংলাদেশ ও বঙ্গবন্ধু অবিচ্ছেদ্য। বঙ্গবন্ধুর স্বপ্ন ছিল সুখী, সমৃদ্ধ, আধুনিক ও অসম্প্রদায়িক বাংলাদেশ বিনির্মাণ। তিনি সূচনা করে দিয়েছিলেন। আর সেটাকে বাস্তবায়ন করছেন তার রক্তের এবং আদর্শের উত্তরসূরি শেখ হাসিনা। তিনি গোটা জাতিকে বুকে ধারণ করেন। বর্তমানে বিশ্ব নেতৃত্ব বলছেন আধুনিক বাংলাদেশ আর শেখ হাসিনা অবিচ্ছেদ্য অধ্যায়। বঙ্গবন্ধুর স্বপ্ন বাস্তবায়নের জন্য ত্রিশ লাখ শহীদের স্বপ্ন বাস্তবায়নের জন্য বঙ্গবন্ধু কন্যা আমাদের মধ্যে আছেন। মৎস্য ও প্রাণিসম্পদ সচিব রওনক মাহমুদের সভাপতিত্বে আলোচনা সভায় স্বাগত বক্তব্য রাখেন মৎস্য ও প্রাণিসম্পদ মন্ত্রণালয়ের অতিরিক্ত সচিব সুবোল বোস মনি। আলোচনায় অংশগ্রহণ করেন- বাংলাদেশ মৎস্য উন্নয়ন করপোরেশনের চেয়ারম্যান কাজী হাসান আহমেদ, প্রাণিসম্পদ অধিদপ্তরের মহাপরিচালক ডা. আবদুল জব্বার শিকদার, মৎস্য অধিদপ্তরের মহাপরিচালক কাজী শামস আফরোজ, মৎস্য গবেষণা ইনস্টিটিউটের মহাপরিচালক ড. ইয়াহিয়া মাহমুদ, প্রাণিসম্পদ গবেষণা ইনস্টিটিউটের মহাপরিচালক ড. নাথু রাম সরকার, মৎস্য ও প্রাণিসম্পদ তথ্য দপ্তরের উপ-পরিচালক মো. শেফাউল করিম, মেরিন ফিশারিজ একাডেমি চট্টগ্রামের অধ্যক্ষ মাসুক হাসান আহমেদ, ভেটেরিনারি কাউন্সিলের রেজিস্ট্রার ডা. মো. ইমরান হোসেন খান প্রমুখ। সভার আগে মৎস্য অধিদপ্তরে স্থাপিত জাতির পিতার প্রতিকৃতিতে শ্রদ্ধার্ঘ্য অর্পণ করেন মৎস্য ও প্রাণিসম্পদ মন্ত্রী, মৎস্য ও প্রাণিসম্পদ সচিবসহ অন্যরা। সভার শুরুতে ১৯৭৫ সালের ১৫ আগস্ট শহীদদের স্মরণে এক মিনিট নিরবতা পালন করা হয় এবং সভা শেষে দোয়া-মাহফিল অনুষ্ঠিত হয়।

স্বাস্থ্য অধিদফতরের অতিরিক্ত মহাপরিচালক হলেন সেব্রিনা ফ্লোরা

ঢাকা অফিস ॥ অধ্যাপক ডা. মীরজাদী সেব্রিনা ফ্লোরাকে স্বাস্থ্য অধিদফতরের অতিরিক্ত মহাপরিচালক (পরিকল্পনা ও উন্নয়ন) হিসেবে নিয়োগ দিয়েছে সরকার। তিনি এতদিন অধিদফতরের রোগতত্ত্ব, রোগ নিয়ন্ত্রণ ও গবেষণা প্রতিষ্ঠানের (আইইডিসিআর) পরিচালকের দায়িত্বে ছিলেন। গতকাল বৃহস্পতিবার রাষ্ট্রপতির আদেশক্রমে স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ মন্ত্রণালয় স্বাস্থ্য সেবা বিভাগ পার-২ অধিশাখা উপসচিব শারমিন আক্তার জাহান স্বাক্ষরিত এ-সংক্রান্ত একটি প্রজ্ঞাপন জারি হয়। আগামী ২০ আগস্ট থেকে পদায়নের এ আদেশ কার্যকর হবে। জনস্বার্থে এ আদেশ জারি হয়েছে বলে প্রজ্ঞাপনে উল্লেখ করা হয়। আইইডিসিআর পরিচালক হিসেবে করোনা সংক্রমণের প্রথম দিক থেকে নিয়মিত স্বাস্থ্য বুলেটিন পরিবেশন করতেন অধ্যাপক সেব্রিনা ফ্লোরা। দেশবাসীর কাছে তিনি অতি পরিচিত এক মুখ। জানা গেছে, স্বাস্থ্য অধিদফতরের বর্তমান অতিরিক্ত মহাপরিচালক (পরিকল্পনা ও উন্নয়ন) অধ্যাপক হোসনে আরা তহমিন আগামী ১৯ আগস্ট অবসর-উত্তর ছুটিতে (পিআরএল) যাচ্ছেন। এ কারণে অধ্যাপক ফ্লোরাকে চলতি দায়িত্বে অতিরিক্ত মহাপরিচালক পদে পদায়ন দেয়া হয়।

ওসি প্রদীপসহ ২৯ জনের বিরুদ্ধে করা হত্যার অভিযোগ খারিজ

ঢাকা অফিস ॥ দীর্ঘ চার বছর পর আবারও স্বামী হত্যার মামলাটি দাঁড় করাতে ব্যর্থ হলেন কক্সবাজারের মহেশখালীতে কথিত ‘বন্দুকযুদ্ধে’ নিহত আবদুস সাত্তারের স্ত্রী হামিদা আকতার (৪০)। ২০১৭ সালে স্বামী হত্যার বিচার চেয়ে মামলার এজাহার দায়ের করে উচ্চ আদালতের নির্দেশনায়ও তা মামলা হিসেবে নথিভুক্ত করাতে পারেননি তিনি। প্রদীপ কুমার দাশ মহেশখালী থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তার (ওসি) দায়িত্বে থাকায় নিজের বিরুদ্ধে মামলা এফআইআর করতে দেয়া নির্দেশনাটি আইনি গ্যাড়াকলে উচ্চ আদালতেই আটকে দেন। সম্প্রতি সাবেক সেনা কর্তকর্তা সিনহা হত্যার ঘটনায় ওসি প্রদীপসহ সাত পুলিশ সদস্য কারান্তরীণ হওয়ার পর আশায় বুক বেঁধে গত বুধবার (১২ আগস্ট) তৎকালীন মহেশখালী থানার ওসি প্রদীপ ও পাঁচ পুলিশ কর্মকর্তাসহ ২৯ জনের বিরুদ্ধে সাত্তার হত্যার অভিযোগ এনে একটি এজাহার দাখিল করেন হামিদা। মহেশখালীর সিনিয়র জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালতের বিচারক আব্বাস উদ্দীনের আদালত নিহত সাত্তারের স্ত্রী হামিদা আকতারের দায়ের করা এজাহারটি আমলে নিয়ে বক্তব্য শুনে দীর্ঘ পর্যালোচনার পর তা মামলা হিসেবে নিতে অস্বীকৃতি জানিয়ে ফেরত দিয়েছেন। আদালত জানিয়েছেন, এ-সংক্রান্ত ২০১৭ সালে উচ্চ আদালতের নির্দেশনার আলোকে মামলাটি এজাহার হিসেবে এখান থেকে নেয়া যাচ্ছে না। সাত্তার হত্যাকা-কে কেন্দ্র করে চার বছর আগে পুলিশের পক্ষে অজ্ঞাতনামা আসামি দেখিয়ে দায়ের করা মামলাটি তদন্তের দায়িত্ব সিআইডিকে দেয়া হয়েছে। চাঞ্চল্যকর মামলাটি সিআইডির এএসপি মর্যাদার একজন কর্মকর্তাকে তদন্তের দায়িত্ব দেন বিচারক। গতকাল বৃহস্পতিবার দুপুরে মহেশখালীর সিনিয়র জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আব্বাস উদ্দীন এ আদেশ দেন বলে জানান বাদীর আইনজীবী মো. শহিদুল ইসলাম। তিনি জানান, আবদুস সাত্তার হত্যায় দায়ের করা ফৌজদারি দরখাস্তটি আমলে নিতে অপারগতা জানিয়েছেন আদালতের বিচারক আব্বাস উদ্দিন। তিনি বলেন, বিষয়টি নিয়ে উচ্চ আদালতে দায়েরকৃত রিট অনিষ্পত্তি অবস্থায় রয়েছে। গত বুধবার হামিদা আক্তারের দায়েরকৃত ফৌজদারি দরখাস্তে মহেশখালীর ফেরদৌস বাহিনীর প্রধান ফেরদৌস, থানার তৎকালীন ওসি প্রদীপ কুমার দাশ, এসআই হারুনুর রশীদ, এসআই ইমাম হোসেন, এএসআই মনিরুল ইসলাম, এএসআই শাহেদুল ইসলাম ও এএসআই আজিম উদ্দিনসহ ২৯ জনকে আসামি করা হয়েছিল। হামিদা আক্তার জানান, ২০১৭ সালের ১৪ ফেব্রুয়ারি সকাল ৭টার দিকে ফেরদৌস বাহিনীর সহায়তায় হোয়ানকের লম্বাশিয়া এলাকায় তার স্বামী হোয়ানক পূর্ব মাঝেরপাড়ার মৃত নুরুচ্ছফার ছেলে আবদুস সাত্তারকে হত্যা করা হয়। ওই সময় এ ঘটনায় থানায় মামলা না নেয়ায় উচ্চ আদালতের শরণাপন্ন হন তিনি। রিট পিটিশন নং-৭৭৯৩/১৭ মূলে ‘ট্রিট ফর এফআইআর’ হিসেবে গণ্য করতে আদেশ দেন বিচারক। সেই আদেশের আলোকে তিনি একই বছরের ১৭ জুলাই কক্সবাজারের পুলিশ সুপারকে লিখিত দরখাস্ত দেন। কিন্তু পুলিশ আবেদন আমলে না নিয়ে উচ্চ আদালতের আদেশ স্থগিত চেয়ে আবেদন করে। আদালত আগের আদেশ বাতিল করে পুনরায় শুনানির কথা বলেন। হামিদা আক্তার বলেন, আমি চরমভাবে হতাশ হয়েছি। স্বামীর মৃত্যুর পর অর্ধাহার-অনাহারে দিন কাটছে। উচ্চ আদালতে যাওয়া অনেক টাকার বিষয়, তাই যেতে পারছি না। সিনহা হত্যায় ওসি প্রদীপ কারাগারে থাকায় আশা করছিলাম নিম্ন আদালতে আমার স্বামী হত্যার অভিযোগটি মামলা হিসেবে নথিভুক্ত করে বিচারের পথে হাঁটবে। কিন্তু আইনি গ্যাড়াকলে আমার আশায় ‘গুড়েবালি’। যদি সুযোগ হয় আবারও উচ্চ আদালতে যাব। না পারলে আল্লাহর ওপর ভরসা করে স্বামী হত্যার বিচারের অপেক্ষা করতে হবে। অন্যদিকে পুলিশ বলছে, নিহত আবদুস সাত্তার অস্ত্র ব্যবসায়ী ছিলেন। তাই বন্দুকযুদ্ধে তার মৃত্যুর পর পরিবারের দায়ের করা এজাহারটি থানায় মামলা হিসেবে নিতে অস্বীকৃতি জানিয়েছিল পুলিশ।

সাবেক প্রধান বিচারপতি সিনহাসহ ১১ জনের বিচার শুরু

ঢাকা অফিস ॥ ফারমার্স ব্যাংক (বর্তমানে পদ্মা ব্যাংক) থেকে চার কোটি টাকা ঋণ নিয়ে আত্মসাতের অভিযোগে করা মামলায় সাবেক প্রধান বিচারপতি সুরেন্দ্র কুমার (এস কে) সিনহাসহ ১১ জনের বিরুদ্ধে অভিযোগ গঠন করেছেন আদালত। অভিযোগ গঠনের ফলে এ মামলার আনুষ্ঠানিক বিচার শুরু হয়েছে। গতকাল বৃহস্পতিবার ঢাকার বিশেষ জজ আদালত-৪-এর বিচারক শেখ নাজমুল আলম আসামিদের বিরুদ্ধে অভিযোগ গঠন করেন। এর আগে ২০ ফেব্রুয়ারি ঢাকা মহানগর দায়রা জজ কে এম ইমরুল কায়েশ মামলাটি ঢাকার বিশেষ জজ-৪-এ বদলির আদেশ দেন। গত ৫ জানুয়ারি এস কে সিনহাসহ ১১ জনের বিরুদ্ধে গ্রেফতারি পরোয়ানা জারি করেন আদালত। ১০ ডিসেম্বর আদালতে এ চার্জশিট জমা দেন মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা দুদকের পরিচালক বেনজীর আহমেদ। এর আগে ৪ ডিসেম্বর কমিশনের সভায় ১১ জনের বিরুদ্ধে অভিযোগপত্র (চার্জশিট) অনুমোদন দেয়া হয়। মামলার অন্য আসামিরা হলেন-ফারমার্স ব্যাংকের সাবেক এমডি এ কে এম শামীম, সাবেক এসইভিপি (মাধ্যমিক শিক্ষা উন্নয়ন কর্মসূচি) গাজী সালাহউদ্দিন, ফার্স্ট ভাইস প্রেসিডেন্ট স্বপন কুমার রায়, ফার্স্ট ভাইস প্রেসিডেন্ট সাফিউদ্দিন আসকারী, সিনিয়র ভাইস প্রেসিডেন্ট মো. জিয়াউদ্দিন আহমেদ, ভাইস প্রেসিডেন্ট মো. লুৎফুল হক, টাঙ্গাইলের বাসিন্দা মো. শাহজাহান, একই এলাকার নিরঞ্জন চন্দ্র সাহা, রনজিৎ চন্দ্র সাহা ও তার স্ত্রী সান্ত্রী রায়। এ মামলা থেকে মৃত হিসেবে প্রমাণ মেলায় চার্জশিট থেকে এক আসামির নাম বাদ দেয়া হয়েছে। নতুন করে একজনের নাম অন্তর্ভুক্ত করা হয়েছে। গত বছরের ১০ জুলাই দুদকের সমন্বিত জেলা কার্যালয় ঢাকায় মামলাটি করা হয়। দুদক পরিচালক সৈয়দ ইকবাল হোসেন এ মামলার বাদী। ফারমার্স ব্যাংকের দুটি হিসাব থেকে চার কোটি টাকা ঋণ নেয়ার ক্ষেত্রে জালিয়াতির ‘প্রমাণ’ পাওয়ার তথ্য গত বছরের অক্টোবরে সাংবাদিকদের জানিয়েছিলেন দুদক চেয়ারম্যান ইকবাল মাহমুদ। অভিযোগ সূত্রে জানা গেছে, ফারমার্স ব্যাংকের গুলশান শাখা থেকে চার কোটি টাকা ঋণ পেয়েছিলেন কথিত ব্যবসায়ী শাহজাহান ও নিরঞ্জন। সেই টাকা রনজিৎ চন্দ্র সাহার হাত ঘুরে বিচারপতি এস কে সিনহার বাড়ি বিক্রির টাকা হিসেবে দেখিয়ে তার ব্যাংক হিসাবে ঢুকেছে বলে অভিযোগ পাওয়ার পর তদন্তে নামে দুদক। দুদক জানায়, সিনহার বিরুদ্ধে গত বছরের জুলাই মাসে মামলা করে সংস্থাটি। মামলায় সাবেক ফারমার্স ব্যাংক (বর্তমানে পদ্মা ব্যাংক) থেকে ভুয়া তথ্য দিয়ে অন্যের নামে চার কোটি টাকার ঋণ করে পরে তা এস কে সিনহার ব্যাংক হিসাবে স্থানান্তর করার অভিযোগ আনা হয়। অভিযোগে বলা হয়, সেই ব্যাংক হিসাব থেকে পরবর্তী সময়ে টাকা স্থানান্তর ও রূপান্তরের মাধ্যমে পাচার করা হয়। দুদক বলছে, মামলার তদন্তে অভিযোগের সত্যতা পাওয়া গেছে। তাই সংশ্লিষ্ট তদন্ত কর্মকর্তার সুপারিশের পরিপ্রেক্ষিতে বর্তমানে বিদেশে অবস্থারত এস কে সিনহাসহ ১১ জনের বিরুদ্ধে অভিযোগপত্র অনুমোদন দেয়া হয়। তদন্ত শেষে নতুন করে আসামি হয়েছেন ফারমার্স ব্যাংকের নিরীক্ষা কমিটির সাবেক চেয়ারম্যান মাহবুবুল হক চিশতী (বাবুল চিশতী)। উল্লেখ্য, সংবিধানের ষোড়শ সংশোধনী বাতিলের রায় এবং কিছু পর্যবেক্ষণের কারণে তোপের মুখে ২০১৭ সালের অক্টোবরের শুরুতে ছুটিতে যান তৎকালীন প্রধান বিচারপতি সুরেন্দ্র কুমার সিনহা। পরে বিদেশ থেকেই তিনি পদত্যাগপত্র পাঠিয়ে দেন।

রিজেন্ট-জেকেজি সম্পর্কে যা জানি বলেছি, জিজ্ঞাসাবাদ শেষে স্বাস্থের সাবেক ডিজি

ঢাকা অফিস ॥ রাজধানীর বিতর্কিত রিজেন্ট হাসপাতাল ও জেকেজি হেলথ কেয়ার সম্পর্কে যা জানেন, তা দুদকের অনুসন্ধান দলকে বলেছেন বলে জানিয়েছেন স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের সাবেক মহাপরিচালক (ডিজি) অধ্যাপক ডা. আবুল কালাম আজাদ। গতকাল বৃহস্পতিবার দুর্নীতি দমন কমিশনের (দুদক) প্রধান কার্যালয়ে হাজির হওয়ার পর পাঁচ ঘণ্টা জিজ্ঞাসাবাদ শেষে সাংবাদিকদের তিনি এ কথা বলেন। এর আগে গত বুধবারও করোনাকালে স্বাস্থ্য সুরক্ষা সামগ্রী কেনায় দুর্নীতির অনুসন্ধান তদন্তের তলবে দুদকে হাজির হয়েছিলেন আবুল কালাম আজাদ। গতকাল বৃহস্পতিবার সকাল সাড়ে ৯টার কিছু পরে টানা দ্বিতীয়দিনের মতো দুদক কার্যালয়ে আসেন আবুল কালাম আজাদ। এরপর সকাল ১০টা থেকে দুদকের পরিচালক শেখ মো. ফানাফিল্যার নেতৃত্বাধীন একটি দল তাকে জিজ্ঞাসাবাদ শুরু করে। তিনি রিজেন্ট হাসপাতাল, এর চেয়ারম্যান মো. সাহেদসহ তলব বিষয়ক যা জানেন, তা বলেছেন। তবে এবারও কী বলেছেন, সেটা বলেননি। পাঁচ ঘণ্টা জিজ্ঞাসাবাদ শেষে লিখিত বক্তব্যে আবুল কালাম আজাদ বলেন, রিজেন্ট হাসপাতাল ও জেকেজি হেলথ কেয়ারের বিষয়ে দুর্নীতি দমন কমিশন তদন্ত করছে। সাবেক মহাপরিচালক হিসেবে আমি কী জানি, তার জন্য দুদকের তদন্ত কর্মকর্তা আজ আমাকে আসার অনুরোধ করেছিলেন। আমি যা জানি তা তাদের বিস্তারিত বলেছি। তদন্তাধীন বিষয় সম্পর্কে এ মুহূর্তে আমার পক্ষে এর বেশিকিছু আপনাদের বলা সম্ভব নয়। আগের দিনের ধারাবাহিকতায় গতকাল বৃহস্পতিবারও সাংবাদিকদের কোনো প্রশ্নের উত্তর দেননি সমালোচনার মুখে পদত্যাগ করা ডিজি আবুল কালাম আজাদ।

বঙ্গবন্ধু হত্যায় যারা খুশি হয়েছিল তারাও ষড়যন্ত্রে যুক্ত ছিল – তথ্যমন্ত্রী

ঢাকা অফিস ॥ জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান হত্যাকান্ডের পর যারা খুশি হয়ে কলাম লিখেছিল এবং খুশি হয়ে বক্তব্য দিয়েছিল তারা নিশ্চয়ই ষড়যন্ত্রের সঙ্গে যুক্ত ছিল বলে মন্তব্য করেছেন আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক ও তথ্যমন্ত্রী ড. হাছান মাহমুদ। গতকাল বৃহস্পতিবার জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের শাহাদাত বার্ষিকী ও জাতীয় শোক দিবস উপলক্ষে ‘১৫ আগস্ট : নেপথ্যের কুশীলবদের বিচারে কমিশন চাই’ শীর্ষক আলোচনা সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এ মন্তব্য করেন। জাতীয় প্রেসক্লাবে ঢাকা সাংবাদিক ইউনিয়ন এ সভার আয়োজন করে। ঢাকা সাংবাদিক ইউনিয়নের সভাপতি কুদ্দুস আফ্রাদের সভাপতিত্বে আলোচনা সভা সঞ্চালনা করেন সাধারণ সম্পাদক সাজ্জাদ আলম খান তপু। আলোচনা সভায় মূল প্রবন্ধ উপস্থাপন করেন- বাংলাদেশ ফেডারেল সাংবাদিক ইউনিয়নের সাবেক সভাপতি মঞ্জুরুল আহসান বুলবুল। প্রধান অতিথির আলোচনায় অংশ নিয়ে তথ্যমন্ত্রী বলেন, বঙ্গবন্ধু হত্যাকা-ের পর যারা খুশি হয়ে কলাম লিখেছিল তাদের গুলো আসা উচিত। কারা কারা খুশি হয়ে কলাম লিখেছিল খুশি হয়ে বক্তব্য দিয়েছিল? তারা তো নিশ্চয়ই ষড়যন্ত্রের সঙ্গে যুক্ত ছিল। না হলে এত খুশি হলো কেন? এগুলোর তো মুখোশ উন্মোচন হওয়া প্রয়োজন। তিনি বলেন, যারা বঙ্গবন্ধু হত্যাকা-ের কুশীলব ছিল তাদের নাম যেন ১০০, ২০০ ও ৫০০ বছর পরের ইতিহাসে লিপিবদ্ধ থাকে। ইতিহাসকে সমৃদ্ধ করতে হয়, ইতিহাসকে সত্য জানাতে হয়। হাছান মাহমুদ বলেন, ইতিহাসের সত্য উদঘাটনের স্বার্থে এবং ভবিষ্যতে সঠিক ইতিহাস লিপিবদ্ধ করার প্রয়োজনে, আমি, আপনারা এবং দেশের মানুষ মনে করে হত্যাকা-ের কুশীলবদের মুখোশ উন্মোচনের স্বার্থে একটি করে তাদের মুখোশ উন্মোচন করে যারা জীবিত আছে তাদেরকে ও বিচারের আওতায় আনা। তিনি বলেন, এটি না হলে ইতিহাসের সত্য উদঘাটন করা হবে না। ইতিহাসের কাঠগড়ায় আমাদেরকে হয় তো ভবিষ্যতে দাঁড় করানো হতে পারে। আলোচনা সভায় আরও অংশ নেন- প্রধানমন্ত্রীর সাবেক তথ্য উপদেষ্টা ইকবাল সোবহান চৌধুরী, জাতীয় প্রেসক্লাবের সভাপতি সাইফুল ইসলাম, সাধারণ সম্পাদক ফরিদা ইয়াসমিন, বাংলাদেশ ফেডারেল সাংবাদিক ইউনিয়নের সাবেক মহাসচিব আবদুল জলিল ভূঁইয়া, বাংলাদেশ ফেডারেল সাংবাদিক ইউনিয়নের সভাপতি মোল্লা জালাল, মহাসচিব শাবান মাহমুদ, যুগ্ম মহাসচিব আবদুল মজিদ, ঢাকা সাংবাদিক ইউনিয়নের সাবেক সভাপতি আজিজুল ইসলাম ভূঁইয়া, সাবেক সাধারণ সম্পাদক সোহেল হায়দার চৌধুরী, ঢাকা সাংবাদিক ইউনিয়নের সহ-সভাপতি এমএ কুদ্দুস, যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক খায়রুল আলম, সাংগঠনিক সম্পাদক এ জিহাদুর রহমান, প্রচার সম্পাদক আসাদুজ্জামান, দফতর সম্পাদক জান্নাতুল ফেরদৌস চৌধুরী সোহেল, নির্বাহী সদস্য রাজু হামিদ প্রমুখ।

সাংবাদিকের নামে মিথ্যা মামলা প্রত্যাহার না হলে দেশব্যাপি কঠোর কর্মসূচির ঘোষণা কুষ্টিয়ায় মানববন্ধনে সাংবাদিক নেতৃবৃন্দের

কুষ্টিয়ায় দুই সাংবাদিকের নামে মিথ্যা ও ভিত্তিহীন হাস্যকর মামলা দায়ের করার প্রতিবাদে মানববন্ধন অনুষ্ঠিত হয়েছে। কুষ্টিয়া জেলা অনলাইন প্রেসক্লাব কর্তৃক আয়োজিত কুষ্টিয়া থানা ট্রাফিক মোড়ে  জেলার সকল সাংবাদিকদের অংশগ্রহনে কুষ্টিয়া জেলা অনলাইন  প্রেসক্লাবের সাধারণ সম্পাদক শেখ নাজমুল হোসেন নামে সুনির্দিষ্ট তথ্যের ভিত্তিত্বে সংবাদ প্রকাশের পরেও হয়রানিমূলক মিথ্যা মামলা দায়ের করে  মামলার ১নং সাক্ষির এ্যাড. শরীফ উদ্দিন রিমনের এক আত্মীয়। উল্লেখ্য যে, কুষ্টিয়া দৌলতপুর ফিলিপনগর মরিচা ডিগ্রি কলেজের অনিয়ম দুর্নীতি’র খবর প্রকাশিত হলে তার  প্রেক্ষিতে মিথ্যা ও হয়রানি করার জন্য সম্পুর্ণ উদ্দেশ্য প্রণোদিত মামলা করান স্থানীয় আওয়ামী লীগ নেতা অ্যাডভোকেট শরীফ উদ্দিন রিমন। মামলায় বাদী এই নেতার নিকটাত্মীয়। সম্পূর্ণ বস্তুনিষ্ঠ একটি খবর নিয়ে এধরণের মামলা উদ্দেশ্য প্রণোদিত, এবং গণমাধ্যমের জন্য হুমকি স্বরুপ উল্লেখ করে শিগগিরই মিথ্যা মামলাটি প্রত্যাহারের দাবি জানান বক্তারা এবং অতিবিলম্বে মামলা প্রত্যাহার না হলে কঠোর থেকে কঠোর অন্দোলনসহ দেশব্যাপি মানববন্ধনের হুশিয়ারী দেন সাংবাদিক নেতৃবৃন্দ। গত মঙ্গলবার ও বুধবার এই মিথ্যা ও উদ্দেশ্য প্রনোদিত মামলার প্রতিবাদে  মানববন্ধনে করেন দৌলতপুর টোয়েন্টিফোর এর কর্মী, পাঠক ও শুভানুধ্যায়ীরা। এই ইস্যুতে সাংবাদিকদের নেয়া সকল কর্মসূচির সাথে একাত্মতা ঘোষণা করেন তারা। উক্ত মানববন্ধন সফল করতে উপস্থিত ছিলেন বাংলাদেশ অনলাইন প্রেসক্লাবের প্রতিষ্ঠাতা সাধারণ সম্পাদক ও বাংলাদেশ অনলাইন নিউজ পোর্টাল  এসোসিয়েশন (বনপা) প্রতিষ্ঠাতা সভাপতি শামসুল আলম স্বপন।  তিনি বলেন অপরাধী ও দূর্নীতিবাজের পেছনে একটি চক্র তাকে  পেলা দিয়ে রেখেছে। একটি মহল অপরাধীদের ইন্ধনদাতা হিসেবে কাজ করছে। তাদের কুষ্টিয়া থেকে বিতারিত করা হবে।

কুষ্টিয়া জেলা অনলাইন প্রেসক্লাবের সভাপতি শাহ আলম রেজা বলেন, কুষ্টিয়াতে অনলাইন প্রেসক্লাব এখন প্রতিষ্ঠিত, ছায়াকে লাথি দেখালে ছায়াও কিন্ত লাথি দেখায়। জেলা অনলাইন  প্রেসক্লাবের সাধারণ সম্পাদক বলেন- বার বার মামলা হামলা হুমকী দেখিয়ে আমাকে দমানো যাবে না। আমার সব জানা আছে, এই সব দুর্নীতিবাজদের গোঁমর ফাঁসের মাধ্যমে আইনের আওতায় আনা হবে । কুষ্টিয়া অনলাইন প্রেসক্লাবের আইন উপদেষ্টা এ্যাড. রফিকুল ইসলাম সবুজ প্রধান অতিথির বক্তব্যে বলেন, আইনের উর্ধে কেউ নয় । অন্যায়ভাবে সাংবাদিকের নামে মিথ্যা মামলা দায়ের করা একটি শাস্তিযোগ্য অপরাধ, আইনের মাধ্যমে তাকে প্রতিহত করা হবে। বক্তব্য রাখেন  বাংলাভিশনের প্রতিনিধি হাসান আলী। তিনি বলেন একজন গণমাধ্যমকর্মী জনগণের বাহক হিসেবে কাজ করে। এই সব মিথ্যা মামলা দিয়ে সাংবাদিকদের কখনো দমানো যাবে না। আরোও উপস্থিত ছিলেন কুষ্টিয়া জেলা অনলাইন প্রেসক্লাবের উপদেষ্টা বিশিষ্ট ব্যবসায়ি আমিনজ্জামান শাহীন, জেলা অনলাইন প্রেসক্লাবের সহ সভাপতি বকুল বিশ্বাস, সহ প্রচার সম্পাদক রুহুল আমীন। ভেড়ামারা অনলাইন  প্রেসক্লাবের সভাপতি ডাঃ কামরুল ইসলাম মনা, সহ-সভাপতি আনোয়ার পারভেজ শান্ত, সাধারণ সম্পাদক সাইফুল ইসলাম, নির্বাহী সদস্য আহসান হাবিব ঝলক, দৌলতপুর অনলাইন  প্রেসক্লাবের গোলাম কিবরিয়া জীবন, তৌকির আহমেদ, খালিদ সাইফুল। কুমারখালীর সহ-সভাপতি মোশারফ, দৈনিক বিশ্ব মানচিত্রের প্রতিনিধি মনোয়ার হোসেন, হোসেন, বিশিষ্ট কবি কুমকুম, রাজীয়া সুলতানাসহ বিভিন্ন প্রিন্ট ও ইলেক্ট্রনিক্স মিডিয়া কর্মীরা সে সময় উপস্থিত ছিলেন। সংবাদ বিজ্ঞপ্তি

ঝিনাইদহে বিদ্যুৎস্পৃষ্টে কৃষকের মৃত্যু

ঝিনাইদহ প্রতিনিধি ॥ ঝিনাইদহের কালীগঞ্জে বিদ্যুৎস্পৃষ্টে মুকুল হোসেন নামের এক কৃষকের মৃত্যু হয়েছে। গতকাল বৃহস্পতিবার সকালে উপজেলার মোল্লাডাঙ্গা মাঠে মটর চালাতে গিয়ে সে মারা যায়। মুকুল  ওই গ্রামের আব্দার মন্ডলের ছেলে। কালীগঞ্জ থানার অফিসার ইনচার্জ মুহাঃ মাহফুজুর রহমান মিয়া জানান- সকালে মাঠে ধানের জমিতে পানি দেওয়ার জন্য মোটর চালু করতে যায়। এসময় মোটর ঘরে বিদ্যুৎস্পৃষ্ট হয়ে তিনি মারা যায়।

ঝিনাইদহের মহেশপুর সীমান্ত দিয়ে অবৈধভাবে ভারতে যাওয়ার সময় নারী-শিশুসহ ৭জন আটক

ঝিনাইদহ প্রতিনিধি ॥ ঝিনাইদহের মহেশপুর উপজেলার সীমান্ত দিয়ে অবৈধভাবে বাংলাদেশ থেকে ভারতে যাওয়ার সময় ১শিশু, ৫ নারীসহ ৭জনকে আটক করেছে বিজিবি। বৃহষ্পতিবার ভোরে তাদের আটক করা হয়। আটককৃতরা হলো চয়ন বিশ্বাস (২০), প্রিয়াংশা বিশ্বাস (১৮), রিমু বিশ্বাস (০৩),রুনু বিশ্বাস (৩৫), মিনতী বিশ্বাস (৩০), নমিতা রায় (৩২) এবং সুমি আাক্তার (২৫)। সকলের বাড়ি গোপালগঞ্জ উপজেলার ডোমরাশুর ও বাগেরহাটের নলবুয়িনা গ্রামে। খাশিলপুর ৫৮ বিজিবির পক্ষে সহকারী পরিচালক মোহাম্মদ নজরুল ইসলাম খান জানান, গোপন সংবাদের ভিত্তিতে শ্যামকুড় বিওপির সীমান্ত পিলার ৬১/১০৫  নেপা মাঠ হতে এই ৭ জনকে আটক করা হয়। এ ব্যাপারে অবৈধভাবে সীমান্ত অতিক্রম করার দায়ে বাংলাদেশ পাসপোর্ট অধ্যাদেশ ১৯৭৩ এর ১১(১)/(গ) ধারায় মহেশপুর থানায় সোর্পদ করা হয়েছে এবং তাদের বিরুদ্ধে মামলা হয়েছে । যার নং ১৮।

বাণিজ্য বৃদ্ধিতে আলজেরিয়ার সঙ্গে চুক্তি হচ্ছে – বাণিজ্যমন্ত্রী

ঢাকা অফিস ॥ বাণিজ্যমন্ত্রী টিপু মুনশি বলেছেন, আলজেরিয়া বাংলাদেশের বন্ধুরাষ্ট্র। বাণিজ্য ও অর্থনৈতিক সহযোগিতা বৃদ্ধির জন্য ১৯৭৩ সালে উভয় দেশের মধ্যে একটি চুক্তি হয়েছিল। বাংলাদেশও আলজেরিয়ার সঙ্গে বাণিজ্য ও অর্থনৈতিক সহযোগিতা বৃদ্ধি করতে আগ্রহী। উভয় দেশের মধ্যে আলোচনার মাধ্যমে এফটিএ অথবা পিটিএ স্বাক্ষর করা হবে। একইসঙ্গে ১৯৭৩ সালে সম্পাদিত চুক্তির কোনো বিষয় প্রয়োজন হলে সংশোধন করা হবে। উভয় দেশের বাণিজ্য বৃদ্ধির সুযোগ রয়েছে। এ সুযোগকে কাজে লাগাতে চায় বাংলাদেশ। গতকাল বৃহস্পতিবার ঢাকায় সরকারি বাসভবনের অফিস কক্ষে ঢাকায় নিযুক্ত আলজেরিয়ার রাষ্ট্রদূত রাবাহ লারবির সঙ্গে জুম প্লাটফর্ম বৈঠকে এসব কথা বলেন মন্ত্রী। এ সময় বাণিজ্য সচিব ড. মো. জাফর উদ্দীন উপস্থিত ছিলেন। বাণিজ্যমন্ত্রী বলেন, বাংলাদেশ রফতানি বাণিজ্যে দ্রুত এগিয়ে যাচ্ছে। বাংলাদেশ তৈরি পোশাক রফতানিতে পৃথিবীর মধ্যে দ্বিতীয় অবস্থানে রয়েছে। আলজেরিয়ায় বাংলাদেশের তৈরি পোশাক, পাট ও চামড়া জাত পণ্য, তামাক এবং ফার্নিচারের প্রচুর চাহিদা রয়েছে। বাংলাদেশ এগুলো আলজেরিয়ায় রফতানি বৃদ্ধি করতে চায়। উভয় দেশের ব্যবসায়ীদের সফর বিনিময়ের মাধ্যমে রফতানি বাণিজ্য বৃদ্ধি করা সম্ভব। কোভিড-১৯ পরিস্থিতির উন্নতি হলে উভয় দেশের মধ্যে সরাসরি আলোচনার মাধ্যমে প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ গ্রহণ করা হবে। রাষ্ট্রদূত রাবাহ লারবি বলেন, আলজেরিয়া বাংলাদেশের সঙ্গে বাণিজ্য বৃদ্ধি করতে আগ্রহী। উভয় দেশের বাণিজ্য ও অর্থনৈতিক সহযোগিতা বৃদ্ধির জন্য ১৯৭৩ সালে একটি চুক্তি হয়েছিল। এ মুহূর্তে উভয় দেশের বাণিজ্যের পরিমাণ খুবই কম। বাণিজ্য বাড়াতে বাংলাদেশের সঙ্গে এফটিএ অথবা পিটিএ করতে প্রস্তুত আলজেরিয়া। উভয় দেশের মধ্যে আলোচনার মাধ্যমে সিদ্ধান্ত গ্রহণ করা হবে। আলজেরিয়ায় বাংলাদেশের বেশ কিছু পণ্যের প্রচুর চাহিদা রয়েছে। এ বিষয়ে উদ্যোগ নিয়ে উভয় দেশের ব্যবসায়ীদের সঙ্গে আলোচনার মাধ্যমে প্রয়োজনীয় সবকিছু করতে চায় আরজেরিয়া। উল্লেখ্য, গত অর্থবছরে আলজেরিয়ায় রফতানি হয়েছে ৫.৯০ মিলিয়ন মার্কিন ডলার মূল্যের বাংলাদেশি পণ্য এবং একই সময়ে আমদানি হয়েছে ৯০.৭৯ মিলিয়ন মার্কিন ডলার মূল্যের পণ্য। বাণিজ্যমন্ত্রী আলজেরিয়ার বাণিজ্যমন্ত্রীকে বাংলাদেশ সফরের আমন্ত্রণ জানান।

নতুন নেতৃত্বের জন্য কাঁদছে আমেরিকা’

ঢাকা অফিস ॥ সদ্য রানিংমেট করা কমলা হ্যারিসকে নিয়ে প্রথমবারের মতো নির্বাচনী প্রচারণায় দেখা গেল ডেমোক্র্যাট প্রেসিডেন্ট প্রার্থী জো বাইডেন। আলজাজিরা জানায়, বুধবার নির্বাচনী প্রচারণায় মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পকে একহাত নেন বাইডেন ও কমলা। প্রায় এক মাসের বিচার-বিশ্লেষণ শেষে মঙ্গলবার কমলাকে ‘রানিংমেট’ হিসেবে ঘোষণা করেন বাইডেন।  ৫৫ বছর বয়সী এই নারী যুক্তরাষ্ট্রের ইতিহাসে প্রথম এশিয়ান-আমেরিকান কিংবা কৃষ্ণাঙ্গ রাজনীতিবিদ, যিনি প্রেসিডেন্ট নির্বাচনের টিকিট পেলেন। পরদিনই বাইডেনের সঙ্গে নির্বাচনী প্রচারণায় নামেন কমলা। সেখানে করোনা মহামারী মোকাবিলায় ট্রাম্পের নেতৃত্বের ঘাটতি নিয়ে আক্রমণ করেন তিনি। কমলা বলেন, ‘ভাইরাসটি প্রায় প্রতিটি দেশেই প্রভাব ফেলেছে। তবে যে কোনও উন্নত দেশের চেয়ে আমেরিকার যে বাজে পরিস্থিতি হয়েছে তার কারণ রয়েছে।’  তিনি বলেন, ‘এটি ট্রাম্পের ব্যর্থতা, শুরুতে তিনি এটিকে (করোনাভাইরাস) গুরুত্ব দেননি। করোনা টেস্ট চালানো, সামাজিক দূরত্ব মানা এবং মাস্ক পরা নিয়ে উল্টাপাল্টা বক্তব্য দেন। তিনি এমন বিভ্রান্তিকর যে, তার বিশ্বাস তিনি বিশেষজ্ঞদের থেকেও ভাল জানেন।’ ভারতীয়-আফ্রিকান বংশোদ্ভূত এ রাজনীতিবিদ বলেন, শতাব্দীর সবচেয়ে জনস্বাস্থ্য সংকটে আমরা। মহামারী নিয়ে প্রেসিডেন্টের (ডোনাল্ড ট্রাম্প) অব্যবস্থাপনা বড় ধরনের অর্থনৈতিক সংকটে ডুবিয়েছে। তিনি বলেন, ‘নতুন নেতৃত্বের জন্য কান্না করছে আমেরিকা। যদিও আমাদের একজন প্রেসিডেন্ট আছে, কিন্তু তিনি নিজেকে নিয়েই ভাবেন বেশি, মানুষদের নিয়ে নয়-যারা তাকে নির্বাচিত করেছিল।’ বাইডেন সম্পর্কে কমলা বলেন, ‘তিনি (বাইডেন) এমন একজন, যিনি কখনো বলেন না যে, কেন এমনটা আমার সঙ্গে হচ্ছে। বরং তিনি জিজ্ঞাসা করেন, আমি আরও ভাল করতে কী করতে পারি। আরেকজনের প্রতি তার এমন সহানুভূতি ও দায়িত্ববোধ-যার কারণে তার রানিংমেট হতে পেরে আমি গর্বিত।’  এর আগে ৫৫ বছর বয়সী কমলাকে রানিংমেট নির্বাচিত করে তাকে ‘অকুতোভয় যোদ্ধা’ আখ্যা দেন বাইডেন।  এক টুইটে এই ডেমোক্র্যাট প্রার্থী লিখেন, ‘আমার রানিংমেট হিসেবে অকুতোভয় যোদ্ধা কমলা হ্যারিসকে নির্বাচনের ঘোষণা দিতে পেরে আমি সম্মানিত।’ ক্যালিফোর্নিয়ার ফার্স্ট-টার্ম সিনেটর কমলাকে তিনি দেশের ‘অন্যতম নিখুঁত সরকারি কর্মী’ হিসেবেও পরিচয় করান। মার্কিন গণমাধ্যম সিএনএনের প্রতিবেদনে ‘কমলা দেবী হ্যারিস’কে সাবেক প্রেসিডেন্ট বারাক ওবামার মতো মিশ্র জাতিসত্তার রাজনীতিবিদ হিসেবে পরিচয় করানো হয়েছে। অকল্যান্ডে জন্ম নেয়া কমলাকে অনেকে ‘ফিমেল ওবামা’ও বলে থাকেন। তিনি ক্যালিফোর্নিয়ার সাবেক অ্যাটর্নি জেনারেল এবং সানফ্রান্সিসকোর ডিস্ট্রিক্ট অ্যাটর্নি ছিলেন। ২০১৯ সালে মার্টিন লুথার কিংয়ের জন্মদিনে তিনি প্রেসিডেন্ট নির্বাচনে লড়ার ঘোষণা দেন।

কুষ্টিয়া সদর উপজেলা পরিষদের বাজেট অনুমোদন

রেজা আহাম্মেদ জয় ॥ কুষ্টিয়া সদর উপজেলা পরিষদের গত ৩০ মে তারিখের বিশেষ বাজেট অধিবেশনে ২০২০-২১ অর্থ বছরের খসড়া বাজেট সর্বসম্মতিক্রমে অনুমোদিত হয়েছে। করোনাভাইরাস সংক্রমণের কারণে স্বাস্থ্য বিধি নিয়ম মেনে অধিবেশন অনুষ্ঠিত হয়। সদর উপজেলা নির্বাহী অফিসার জুবায়ের হোসেন চৌধুরীর সভাপতিত্বে প্রধান অতিথি ছিলেন উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান আতাউর রহমান আতা। বিশেষ অতিথি ছিলেন উপজেলা পরিষদের ভাইস চেয়ারম্যান আবু তৈয়ব বাদশা, মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান শাহানাজ পারভীন রেখা।  এছাড়াও সদর উপজেলার প্রতিটি সরকারি দপ্তরের উর্দ্ধতন অফিসার, ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যানবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন। সংবাদের ভিত্তিতে জানা যায়, বাজেট সার-সংক্ষেপঃ সমাপ্তি  জের (ক+খ) পূর্ববর্তী বৎসরের প্রকৃত (২০১৮-১৯) ৩২১৭৮০১৫ টাকা, চলতি বছরের বাজেট বা চলতি বছরের সংশোধিত বাজেট (২০১৯-২০) ৭৫৯৩০০০০ টাকা, পরবর্তী বছরের বাজেট (২০২০-২১) ৭৭৪১৯৯৭১ টাকা। রাজস্ব হিসাব প্রাপ্ত আয়ঃ মোট রাজস্ব প্রাপ্তি(১+৯), পূর্ববর্তী বৎসরের প্রকৃত আয় (২০১৮-১৯) ১৬০০০০০০ টাকা, চলতি বছরের বাজেট বা সংশোধিত বাজেট(২০১৯-২০) ৫৬০২০০০০ টাকা, পরবর্তী বছরের প্রস্তাবিত বাজেট (২০২০-২১) ৫০৪২৬২৮২ টাকা। রাজস্ব ব্যয়(১-১০), পূর্ববর্তী বছরের প্রকৃত ব্যয় (২০১৮-১৯) ১৬০০০০০০টাকা, চলতি বছরের বাজেট বা সংশোধিত বাজেট (২০১৯-২০) ৫৬০২০০০০ টাকা, পরবর্তী বছরের বাজেট (২০২০-২১) ৫০৪২৬২৮২টাকা। ২০১৯-২০ অর্থবছরের আয় ও ব্যয় ৭৫৯৩০০০০ টাকা। ২০২০-২১ অর্থবছরের আয় ৭৭৪১৯৯৭১ টাকা। বাজেট অধিবেশনে পরিচালনায় নানা শঙ্কা ও উৎকণ্ঠা ছিল। এ বছরে কোভিড-১৯ সংক্রমনের কারনে সকলে আতঙ্কের মধ্যে রয়েছে। দিন যত অতিবাহিত হচ্ছে কুষ্টিয়াতে ততই করোনা রোগীর সংখ্যা বাড়ছে। এরই মাঝে বাজেট অধিবেশন সুষ্ঠুভাবে শেষ হয়।

জলবায়ু সংকট মোকাবিলায় তরুণদের এগিয়ে আসতে হবে – মোমেন

ঢাকা অফিস ॥ জলবায়ু পরিবর্তন বর্তমানে সর্বাধিক সংকটপূর্ণ চ্যালেঞ্জ। তরুণরাই আমাদের বর্তমান ও ভবিষ্যৎ। এই সংকট মোকাবিলায় তরুণদেরই এগিয়ে আসতে হবে বলে মনে করেন পররাষ্ট্রমন্ত্রী একে আবদুল মোমেন। অ্যাকশনএইড বাংলাদেশ, ইয়ুথ নেট ফর ক্লাইমেট জাস্টিস, কোস্টাল ইয়ুথ অ্যাকশন হাব, বিন্দু, বাংলাদেশ মডেল ইয়ুথ পার্লামেন্ট, বাংলাদেশ এনভায়রনমেন্ট অ্যান্ড ডেভেলপমেন্ট সোসাইটি ও ব্রিটিশ কাউন্সিলের যৌথ উদ্যোগে ‘ইয়ং পিপল লিডিং কোস্টাল রেজিলিয়েন্স’ শীর্ষক এক ওয়েবিনারে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি একথা বলেন। গতকাল বৃহস্পতিবার এক প্রেস বিজ্ঞপ্তিতে বিষয়টি জানানো হয়। জলবায়ু পরিবর্তন মোকাবিলায় বাংলাদেশ সরকারের বিভিন্ন পদক্ষেপের কথা উল্লেখ করে পররাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, জলবায়ু পরিবর্তন মোকাবিলায় তরুণ প্রজন্মের আবিষ্কারে সহায়তা করতে সম্প্রতি স্পেশাল ডেল্টা ফান্ড প্রণয়ন করা হয়েছে। তাছাড়া আগামী মাসে দেশে রিজিওনাল অ্যাডাপটেশন সেন্টার স্থাপন হতে যাচ্ছে বলেও জানান তিনি। এ বছরে ওআইসি ইয়ুথ ক্যাপিটাল ২০২০ ঘোষণা করা হয় এবং বিশ্বের ৭৫টি দেশের প্রায় ১২শ প্রতিনিধি ক্লাইমেট রিজিলেন্স প্রোগ্রামে অংশগ্রহণ করেন বলেও জানান আবদুল মোমেন। ওয়েবিনারে ‘কোস্টাল ইয়ুথ অ্যাকশন হাব’ নামে একটি প্ল্যাটফর্ম উদ্বোধনও করেন পররাষ্ট্রমন্ত্রী। বিশেষ অতিথি হিসেবে সংসদ সদস্য ও ক্লাইমেট পার্লামেন্ট বাংলাদেশের আহ্বায়ক নাহিম রাজ্জাক বলেন, আমরা সবাই জলবায়ু পরিবর্তনের প্রভাব সম্পর্কে অবহিত। কিন্তু আমারা যেটা বুঝি না সেটি হচ্ছে আমদেরই এই সমস্যা নিরসনে এগিয়ে আসতে হবে। অ্যাকশনএইড বাংলাদেশের কান্ট্রি ডিরেক্টর ফারাহ কবির বলেন, জলবায়ু পরিবর্তন মোকাবিলাসহ বিভিন্ন বিষয়ে বাংলাদেশের অবস্থা পৃথিবীর কাছে দৃষ্টান্তস্বরূপ। তরুণ প্রজন্ম বোতল বাতি স্থাপনের মতো বিভিন্ন পরিবেশবান্ধব কার্যক্রমে অংশ নিয়েছে, যা প্রশংসনীয়। এতে আরো বক্তব্য দেন ব্রিটিশ কাউন্সিলের ডিরেক্টর (ইনক্লুসিভ কমিউনিটিস) ড. শাহনাজ করিম, পিকেএসএফ চেয়ারম্যন ড. কাজী খলিকুজ্জামান, মানবাধিকার কর্মী শিপা হাফিজা, বরিশালের ডিসি এসএম আজিওর রহমান, এশিয়া অঞ্চলের কপ-২৬ এর আঞ্চলিক প্রতিনিধি কেন ও ফ্লেয়াথি, নেদারল্যান্ড দূতাবাসের ফার্স্ট সেক্রেটারি ফোকার্ট ডি জাগের, ইয়ুথ নেট ফর ক্লাইমেট জাস্টিস এর কো-অর্ডিনেটর শাকিলা ইসলাম, বাংলাদেশ মডেল ইয়ুথ পার্লামেন্ট এর চিফ এক্সিকিউটিভ সোহানুর রহমান প্রমুখ।

 

ব্যক্তি-গোষ্ঠীর স্বার্থে যেন শোক দিবসের পরিবেশ বিনষ্ট না হয় – কাদের

ঢাকা অফিস ॥ কোনো ব্যক্তি ও গোষ্ঠীর স্বার্থ সিদ্ধির জন্য যেন জাতীয় শোক দিবসের পরিবেশ বিনষ্ট না হয় এবং চিরায়ত ঐতিহ্য আওয়ামী লীগের মূল্যবোধ যাতে ক্ষুন্ন না হয়’ সেদিকে সকলকে সতর্ক থাকার আহ্বান জানিয়েছেন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের। গতকাল বৃহস্পতিবার আওয়ামী লীগ সভাপতি শেখ হাসিনার ধানমন্ডির রাজনৈতিক কার্যালয়ে ১৫ আগস্ট জাতীয় শোক দিবসের কর্মসূচি ঘোষণাকালে এ আহ্বান জানান তিনি। ওবায়দুল কাদের বলেন, সকলকে নিজ নিজ অবস্থানে থেকে দেশবাসীকে সঙ্গে নিয়ে জাতির পিতার প্রতি শ্রদ্ধা নিবেদন এবং তার আদর্শে দেশ গড়ার মহান ব্রতে অঙ্গীকারাবদ্ধ হয়ে ১৫ আগস্ট জাতীয় শোক দিবস পালন করতে হবে। বঙ্গবন্ধু কন্যা শেখ হাসিনার নেতৃত্বে বঙ্গবন্ধুর জন্মশতবার্ষিকীর পটভূমিতে দাঁড়িয়ে জাতীয় শোক দিবস উপলক্ষে আওয়ামী লীগ ঘোষিত কর্মসূচি স্বাস্থ্যবিধি মেনে এবং ভাবগাম্ভীর্যের সঙ্গে পালনের জন্য দেশবাসীকে আহ্বান জানান আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক। একইসঙ্গে দেশের সকল প্রগতিশীল রাজনৈতিক ও সামাজিক-সাংস্কৃতিক সংগঠনের নেতাকর্মীদের প্রতিও জাতীয় শোক দিবস পালনের আহ্বান জানান তিনি। সততা, সফলতা এবং সাহসিকতার সঙ্গে করোনা ও বন্যা পরিস্থিতি মোকাবিলা করার জন্য প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে উপস্থিত সবার পক্ষে ধন্যবাদ জানান ওবায়দুল কাদের। এ সময় উপস্থিত ছিলেন- আওয়ামী লীগের সভাপতিম-লীর সদস্য বেগম মতিয়া চৌধুরী, জাহাঙ্গীর কবির নানক, আবদুর রহমান, যুগ্ম-সাধারণ সম্পাদক মাহবুব উল আলম হানিফ, ডা. দীপু মনি, ড. হাছান মাহমুদ ও আ ফ ম বাহাউদ্দীন নাসিম, মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক সম্পাদক মৃণাল কান্তি দাস, দফতর সম্পাদক ব্যারিস্টার বিপ্লব বড়ুয়া, স্বাস্থ্য সম্পাদক ডাক্তার রোকেয়া সুলতানা, উপদফতর সম্পাদক সায়েম খান প্রমুখ।

গাংনীতে এমপি খোকনসহ পরিবারের ৫জন সদস্য করোনা আক্রান্ত 

গাংনী প্রতিনিধি ॥ মেহেরপুর-২ (গাংনী) আসনে জাতীয় সংসদ সদস্য ও গাংনী উপজেলা আ.লীগের সভাপতি মোহাম্মদ সাহিদুজ্জামান খোকনসহ তার পরিবারের ৫জন করোনা আক্রান্ত হয়েছেন। গতকাল বৃহস্পতিবার সন্ধ্যায় করোনা আক্রান্তের বিষয়টি নিশ্চিত করেছে মেহেরপুর স্বাস্থ্য বিভাগ। করোনা আক্রান্তের বিষয়টি নিশ্চিত করে মেহেরপুর-২ (গাংনী) আসনের সংসদ সদস্য মোহাম্মদ সাহিদুজ্জামান খোকন সাংবাদিকদের জানান কয়েকদিন যাবত জ্বর-সর্দিতে ভুগছিলাম। পাশাপাশি স্ত্রী-সন্তানসহ পরিবারের ৪জন সর্দি-জ্বরে ভুগছিল। নমুনা পরীক্ষার পর পরিবারের ৫জনেরই পজেটিভ ফলাফল আসে। এদিকে সংসদ সদস্য মোহাম্মদ সাহিদুজ্জামান খোকনসহ পরিবারের ৫জন গাংনী উপজেলা শহরস্থ থানা সড়কের বাসভবনে লকডাউনে থেকে চিকিৎসা নিচ্ছেন।

প্রকল্পে অস্বাভাবিক ব্যয় নিয়ে সচিবদের সঙ্গে মন্ত্রীর বৈঠক

ঢাকা অফিস ॥ মন্ত্রিপরিষদ সচিব, প্রধানমন্ত্রীর মুখ্য সচিবসহ ৩০ মন্ত্রণালয়ের সচিবের সঙ্গে বৈঠক করেছেন পরিকল্পনামন্ত্রী এম এ মান্নান। সরকারের উন্নয়ন প্রকল্পে অস্বাভাবিক বা বাড়াবাড়ি খরচসহ বেশকিছু বিষয় নিয়ে বৈঠকে আলোচনা হয়। বৈঠকে তারা স্বীকার করেছেন, প্রকল্পে কিছু ক্ষেত্রে অস্বাভাবিক খরচের কথা। এটা গ্রহণযোগ্য নয়। তারা একমত হয়েছেন যে, এসব বিষয় আর মেনে নেয়া যাবে না। এগুলো শোধরানোর জন্য এ বছর থেকেই সবাই একসঙ্গে কাজ করবেন। আগামী কয়েক মাসের মধ্যে এর বাস্তবায়ন দেখা যাবে। গতকাল বৃহস্পতিবার বেলা ১১টার দিকে রাজধানীর শেরেবাংলা নগরের এনইসি সম্মেলন কক্ষে ৩০ মন্ত্রণালয়ের সচিবের সঙ্গে বৈঠক করেন পরিকল্পনামন্ত্রী। দুপুর দেড়টার দিকে সভা শেষ হয়। সভায় পরিকল্পনা কমিশনের যেসব কর্মকর্তা প্রকল্প যাচাই-বাছাই করেন, তাদের পর্যবেক্ষণ, কী কী ঘাটতি লক্ষ্য করেছেন- সেসব তুলে ধরেন। অন্য মন্ত্রণালয়ের সচিবরা যারা প্রকল্প তৈরি করেন, বৈঠকে তাদের শিক্ষণীয় ব্যাপারগুলো তুলে ধরেন। মন্ত্রিপরিষদ সচিব ও প্রধানমন্ত্রীর মুখ্যসচিব তাদের অভিজ্ঞতার আলোকে উল্লেখ করেন যে, কোথায় কীভাবে আরও ভালো করা যায়। সভা শেষে দুপুর ২টার দিকে সংবাদ সম্মেলন করে বৈঠকে কী আলোচনা হয়েছে, সে বিষয়ে বিস্তারিত তুলে ধরেন পরিকল্পনামন্ত্রী। তিনি বলেন, আমরা সবাই একমত হয়েছি যে, করোনার জন্য নয়, অপ্রয়োজনীয় ব্যয় যেকোনো পরিস্থিতিতে আমাদের পরিহার করতে হবে। এটা অপরিহার্য। প্রধানমন্ত্রীর কাছে বিভিন্ন সময় আমি শেয়ার করেছি। তিনি বিরক্তি প্রকাশ করেছেন। তিনি আমাদের এ সমন্ধে নির্দেশনা দিয়েছেন যে, এগুলো গ্রহণ করবেন না। আমাদের কাছ থেকে শোনেন, তা নয়। তার (প্রধানমন্ত্রীর) নিজের নজরেও আসছে। বিশেষ প্রকল্পের রিভিশন নিয়ে তিনি প্রায়ই প্রশ্ন করেন, এত রিভিশন কেন করেন। প্রথমে বললেন দু-তিন বছরের প্রকল্প। তারপর এক বছরের মাথায় এসে বলেন, চার বছর লাগবে। আরেক বছর পর আবার এসে বললেন ব্যয় বাড়াতে হবে। এগুলো তিনি মনে করেন যে, শৃঙ্খলাবিরোধী। এটা আমরা বিস্তারিত আলোচনা করেছি। পরিকল্পনামন্ত্রী বলেন, সরকারের অর্থ নয়, জনগণের অর্থ। জনগণের অর্থ যদি অপচয় হয় বা খরচ বেশি করি- এটা গ্রহণযোগ্য নয়। করোনা হোক বা না হোক, কোনো সময়ই জনগণের অর্থ নিয়ে ‘নয়-ছয়’ হতে দেয়া যাবে না, এটা নিয়ে আমরা আলোচনা করেছি। আমরা সবাই স্বীকার করি যে, কিছুকিছু ক্ষেত্রে বাড়াবাড়ি আছে। ভুল হোক বা হিউম্যান এরর হোক, হিউম্যান এরর হিসেবে নেব। কিন্তু রিপিটেড হিউম্যান এরর তো গ্রহণযোগ্য নয়। সবাই মিলে আলোচনা করেছি, কীভাবে এটাকে উতরে আসা যায়, এ বিষয়ে আমরা সবাই মিলে একমত হয়েছি, আমরা যার যার অবস্থান থেকে এটা মোকাবিলা করবো। এ বছর থেকে কাজ শুরু করলাম, নতুন প্রকল্পগুলোর জন্য আমরা অনেকটা স্ট্রিনজেন হবো। প্লানিং কমিশনে আমরা মোস্ট স্ট্রিনজেন হবো। যারা প্রকল্প তৈরি করবে, তারা আগের তুলনায় অনেক বেশি সাবধানতা অবলম্বন করবেন। যাতে এ ধরনের কাজ আগামীতে যেন আর না হয়। তিনি বলেন, একজন লোকের কাছে চারটা, পাঁচটা, ছয়টা প্রকল্প। ১০টা প্রকল্পও পাওয়া গেছে। এটা আমাদের সার্কুলারবিরোধী, বিধানবিরোধী। তারপরও করে যাচ্ছি এটা। সুনামগঞ্জের প্রকল্পে প্রকল্প পরিচালক ঢাকায়। এটা গ্রহণযোগ্য নয়। এটা আগেও আলোচনা করেছি। আবার আলোচনা করছি। বারবার করে এটাকে আমরা শোধরাবার চেষ্টা করছি। শোধরানো দরকার। এ সমন্ধে কোনো সন্দেহ নেই। আমরা সবাই একমত। আমরা একমত হয়েছি, এসব বিষয় আর মেনে নেয়া যাবে না। এগুলো শোধরানোর জন্য আমরা সবাই আবার একসঙ্গে কাজ করবো। তিনি আরও বলেন, এ বিষয়গুলো বিস্তারিত আলোচনা হয়েছে। সচিবরা বাস্তবায়নের দায়িত্বে থাকেন। মন্ত্রিপরিষদ সচিব কী কী শাস্তির বিধান আছে, সেটা উল্লেখ করেছেন। জ্যেষ্ঠ সচিব হিসেবে তিনি আবার এটাকে তুলে ধরেছেন বলেও জানান পরিকল্পনামন্ত্রী। এর আগে গতকাল বৃহস্পতিবার বেলা সাড়ে ১১টার দিকে ৩০টি মন্ত্রণালয়ের সচিবদের সঙ্গে বৈঠকের সময় পরিকল্পনামন্ত্রী বলেন, জনগণের সম্পদ সরকার কীভাবে ব্যবহার করছে, তা তারা নজরে রেখেছে। এম এ মান্নান বলেন, আমাদের কাজ দৃশ্যমান অবকাঠামো তৈরি করা। আমরা তা করছি। জনগণ এখন অনেক সচেতন। তারা আমাদেরকে নজরে রেখেছে। গতিবিধি, আচার-আচরণ দেখছে। তাদের সম্পদ আমরা কীভাবে ব্যবহার করছি, তা-ও নজরে রেখেছে। টাকার ব্যবহার, সময় উপযোগিতা, পরিমাণ সবকিছুই তারা নজরে রেখেছে। বিষয়টা খুবই ভালো। জনগণ তাদের সম্পদের বিষয়ে সচেতন। এ সময় পরিকল্পনা কমিশন সিনিয়র সচিব মো. আসাদুল ইসলাম বলেন, করোনার কারণে স্বাস্থ্যবিধি প্রতিপালনের স্বার্থে আমরা সব মন্ত্রণালয়কে একসঙ্গে সভায় আমন্ত্রণ করতে পারিনি। আমাদের পরিকল্পনা ছিল কিছু মন্ত্রণালয়ের প্রতিনিধি এখানে উপস্থিত থাকবেন। বাকিদের আমরা জুমের (অনলাইন মিটিং প্ল্যাটফর্ম) মাধ্যমে সভায় আলোচনা করব। কিন্তু টেকনিক্যাল কারণে জুমের অংশটা আমাদের বাদ দিতে হয়েছে। ফলে এখানে ৩০টা মন্ত্রণালয়ের সচিবদেরকে ডেকে আমন্ত্রণ করতে পেরেছি। ২০১৯-২০ অর্থবছরের সংশোধিত বার্ষিক উন্নয়ন কর্মসূচির বাস্তবায়ন অগ্রগতি পর্যালোচনা, ২০২০-২১ অর্থবছরের এডিপির সুষ্ঠু ও গুণগতমান সম্পন্ন বাস্তবায়নের বিষয়ে আলোচনা, উন্নয়ন প্রকল্প প্রস্তাবের (ডিপিপি) গুণগতমান বিষয়ক আলোচনা-কেস স্টাডি এবং বিবিধ বিষয়ে আলোচনা করা হবে বলেও জানান সচিব।

 

কুষ্টিয়া সদর উপজেলায় জাতীয় শোক দিবস উদযাপন উপলক্ষে প্রস্তুতিমূলক সভা

নিজ সংবাদ ॥ কুষ্টিয়া সদর উপজেলার কনফারেন্স রুমে ১৫ আগষ্ট জাতীয় শোক দিবসকে সামনে রেখে জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ৪৫তম শাহাদাৎবার্ষিকী উপলক্ষে প্রস্তুতিমুলক সভা অনুষ্ঠিত হয়। সদর উপজেলা পরিষদের উদ্যোগে উপজেলা নির্বাহী অফিসার জুবায়ের  হোসেন চৌধুরীর সভাপতিত্বে প্রস্তুতিমূলক এ সভায় প্রধান অতিথি ছিলেন সদর উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান ও শহর আওয়ামীলীগের সাধারন সম্পাদক আতাউর রহমান আতা। বিশেষ অতিথি ছিলেন ইবি থানার অফিসার ইনচার্জ মোস্তাফিজ রহমান রতন, উপজেলা পরিষদের ভাইস চেয়ারম্যান ও সদর উপজেলা যুবলীগের সভাপতি আবু তৈয়ব বাদশা, মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান শাহানাজ পারভীন রেখাসহ উপজেলার উর্দ্ধতন কর্তৃপক্ষ। সভায় যথাযথ মর্যাদায় জাতির পিতার শাহাদাৎ বার্ষিকী উদযাপনে বিভিন্ন পরিকল্পনা গ্রহন করা হয় এবং তা বাস্তবায়নের জন্য দলীয় নেতা-কর্মীদের প্রতি আহ্বান জানানো হয়। সদর উপজেলার ১৩টি ইউনিয়ন চেয়ারম্যান ও আওয়ামীলীগের নেতা, শহর ছাত্রলীগের  নেতাকর্মী সহ সরকারী দপ্তরের কর্মকর্তারা এসময় উপস্থিত ছিলেন।

প্রতিটি দুর্যোগে আমরা জনগণের পাশে আছি – পলক

ঢাকা অফিস ॥ তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি প্রতিমন্ত্রী জুনাইদ আহমেদ পলক বলেছেন, বর্তমান সরকার প্রতিটি দুর্যোগে জনগণের পাশে আছে। আমরা মহামারি করোনা ভাইরাসের কারণে অসহায় হয়ে পড়া মানুষের কাছে মানবিক সহায়তা পৌঁছে দিয়েছি। আমি আমার নির্বাচনী এলাকার ৭২ হাজার পরিবারের কাছে মানবিক সহায়তা পৌঁছে দিয়েছি, যোগ করেন প্রতিমন্ত্রী। গতকাল বৃহস্পতিবার দুপুরে উপজেলা পরিষদের হলরুমে ক্যান্সার, কিডনি, লিভার সিরোসিস, প্যারালাইজড, জন্মগত হ্রদরোগ ও থ্যালাসেমিয়া রোগীদের মধ্যে আর্থিক সহায়তার চেক বিতরণ অনুষ্ঠানে তিনি এ কথা বলেন। প্রতিমন্ত্রী এ সময় প্রধানমন্ত্রীর পক্ষ থেকে দেওয়া ১৯ জনের মধ্যে নয় লাখ ৫০ হাজার টাকার চেক বিতরণ করেন। উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) নাসরিন বানুর সভাপতিত্বে চেক বিতরণ অনুষ্ঠানে তিনি আরো বলেন, বঙ্গবন্ধুর স্বপ্নের সোনার বাংলার আধুনিক রূপ ডিজিটাল বাংলাদেশ। তার স্বপ্ন বাস্তবায়নে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সরকার কাজ করে আসছে। করোনার এ দুর্যোগে দীর্ঘ পাঁচ মাস আমরা সবাই জনগণের কল্যাণে কাজ করে যাচ্ছি। এ অনুষ্ঠানে আরো উপস্থিত ছিলেন সিংড়া থানার ওসি নুরে আলম সিদ্দীকি, উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডা. আমিনুল ইসলাম, ডাহিয়া ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান আবুল কালাম, তাজপুর ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান মিনহাজ উদ্দিন, উপজেলা আওয়ামী লীগ ধর্ম বিষয়ক রুহুল আমিন ও উপজেলা সমাজসেবা কর্মকর্তা আতিকুর রহমানসহ অনেকে। এর আগে প্রতিমন্ত্রী একজন শারীরিক প্রতিবন্ধীকে হুইল চেয়ার দেন এবং স্বাস্থ্য ও সংবাদ কর্মীদের মধ্যে ৬৫০ পিস এন-৯৫ মাস্ক বিতরণ করেন। পরে তিনি উপজেলা সমন্বয় সভায় যোগ দেন।

 

কুষ্টিয়া পুলিশের মাদকবিরোধী অভিযানে ১১০ লিটার চোলাই মদসহ গ্রেফতার ৪

নিজ সংবাদ ॥ কুষ্টিয়ার মিরপুরে পুলিশের পৃথক অভিযানে সর্বমোট ১১০ (একশত দশ) লিটার চোলাই মদ উদ্ধার করা হয়েছে। সেই সাথে ৪ (চার) জন আসামীকে গ্রেফতার করা হয়েছে। গ্রেফতারকৃতদের বিরুদ্ধে মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রন আইনে নিয়মিত মামলা রুজু করা হয়েছে। গতকাল ১৩ আগষ্ট জেলা পুলিশের বিশেষ শাখা সূত্রে এ তথ্য জানাগেছে।

জেলা পুলিশের বিশেষ শাখা থেকে জানাগেছে, সারা দেশব্যাপী চলমান মাদকবিরোধী অভিযানের অংশ হিসেবে কুষ্টিয়া জেলার মিরপুর থানা পুলিশ পৃথক অভিযান পরিচালনা করে ১৩ আগষ্ট বৃহস্পতিবার সকালে মিরপুর থানাধীন নওদাখাড়ারা আয়াতুল্লাহ মোড় অভিযান পরিচালনা করা হয়। এ সময় কুষ্টিয়া  মিরপুর উপজেলার দক্ষিণ কাটদহ এলাকার মৃত জগুলাল ডোমের ছেলে মতিলাল ডোম (৬৫) ও একই এলাকার মৃত আতিয়ার মোল্লার ছেলে মোঃ মামুন মোল্লা (৩০) কে মোট ৬০ (ষাট) লিটার চোলাই মদসহ গ্রেফতার করা হয়। এ সংক্রান্তে মিরপুর থানার মামলা নং-১৪ তারিখ-১৩/০৮/২০২০ খ্রিঃ, ধারা-২০১৮ সালের মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রন আইনের ৩৬(১) এর ২৪(খ)/৩৮ ধারা রুজু হয়েছে।

এদিকে বৃহস্পতিবার সকাল সাড়ে ৮ টার দিকে মিরপুর থানা পুলিশ মাদক বিরোধী অপর একটি অভিযান পরিচালনা করে মিরপুর থানাধীন নওদাখাড়ারা আয়াতুল্লাহ মোড় হতে কুষ্টিয়া  মিরপুর উপজেলার দক্ষিণ কাটদহ এলাকার মৃত সোনালাল ডোমের ছেলে বাবুলাল ডোম (২৮) ও স্বরূপদহ এলাকার জান আলীর ছেলে মোঃ রানা (২২) কে মোট ৫০ (পঞ্চশ) লিটার চোলাই মদসহ গ্রেফতার করা হয়। এ সংক্রান্তে মিরপুর থানার মামলা নং-১৫ তারিখ-১৩/০৮/২০২০ খ্রিঃ, ধারা-২০১৮ সালের মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রন আইনের ৩৬(১) এর ২৪(খ)/৩৮ ধারা রুজু হয়েছে।

 

শিক্ষকদের ক্ষোভ প্রকাশ

নিম্নমানের বেঞ্চ বিতরণ করলেন না চেয়ারম্যান-ইউএনও !

কুমারখালী প্রতিনিধি ॥ কুষ্টিয়ার কুমারখালীতে ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠান কর্তৃক সরবরাহকৃত নিম্নমানের বেঞ্চ বিতরণ না করেই চলে গেলেন উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান ও উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা। উপজেলা পরিষদের রাজস্ব তহবিলের অর্থায়ণে (পাঁচ লক্ষ টাকা) এক’শ জোড়া বেঞ্চ সরবরাহের জন্য দরপত্র আহবান করে উপজেলা স্থানীয় সরকার প্রকৌশল অধিদপ্তর (এলজিইডি)। জেলার মিরপুর উপজেলার ঠিকাদার মো. হাফিজুল হক ৪ লক্ষ ৭৫ হাজার টাকায় এক’শ জোড়া বেঞ্চ সরবরাহের জন্য চুক্তিবদ্ধ হয় এবং সে অনুযায়ী সংশ্লিষ্ট ঠিকাদার আম কাঠের তৈরীকৃত বেঞ্চ সরবরাহ করে। গতকাল বৃহস্পতিবার বেলা সাড়ে ১১টায় উপজেলা পরিষদ চত্বরে আনুষ্ঠানিকভাবে বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের শিক্ষকদের নিকট বেঞ্চ হস্তান্তর আয়োজন করা হয়। এ সময়ে উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান মো. আব্দুল মান্নান খান ও উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা রাজীবুল ইসলাম খান দেখতে পান বেঞ্চগুলো খুবই নিম্নমানের। সে কারণে তারা বেঞ্চগুলো বিতরণ না করেই ক্ষোভ প্রকাশ করে চলে যান। তবে এ সময় চুক্তির শর্তানুযায়ী ঠিকাদার বেঞ্চ সরবরাহ করেছে কি-না তা দেখার দায়িত্বে থাকা উপজেলা স্থানীয় সরকার প্রকৌশল অধিপ্তরের উপ সহকারি প্রকৌশলীকে তলব করেন উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান ও উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা। কিন্তু সে সময় ওই উপ সহকারি প্রকৌশলীকে পাওয়া যায়নি। তবে উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যানের কার্যালয়ের সিএ রাজু আহমেদ জানান, ঠিকাদারকে বিল পরিশোধ করা হয়নি। তার জামানত সহ বন্ড জমা রাখা হয়েছে। যথেচ্ছাভাবে তৈরীকৃত নিম্নমানের বেঞ্চ সরবরাহ করায় শিক্ষকসহ স্থানীয় সচেতন মহল সংশ্লিষ্ট ঠিকাদারের বিরুদ্ধে ক্ষোভ প্রকাশ করেছেন।