নানা কৌশলে সেবনকারীদের কাছে পৌঁছে দেওয়া হচ্ছে মাদকদ্রব্য

কুমারখালীতে টাকা দিলেই মাদক মেলে অবস্থা, শঙ্কায় অভিভাবকেরা

কুমারখালী প্রতিনিধি ॥ বৈশ্বিক মহামারি করোনা ভাইরাসের প্রার্দুভাবের কারণে মানুষের স্বাভাবিক চলাফেরা সহ ব্যবসা-বাণিজ্য থমকে গেলেও কুষ্টিয়ার কুমারখালীতে আশঙ্কাজনক হারে বেড়েছে মাদকের কারবার। উপজেলার পৌর এলাকা থেকে প্রত্যন্ত গ্রামাঞ্চল পর্যন্ত হাত বাড়ালেই পাওয়া যাচ্ছে গাঁজা, ইয়াবা, বাংলা মদসহ হরেক রকমের নেশার সামগ্রীর। মাদকদ্রব্যের সহজলভ্যতার কারণে দিনে দিনে মাদক সেবীদের সংখ্যাও বেড়ে যাচ্ছে। বিশেষ করে শিশু-কিশোর ও যুবকেরা মাদকাসক্ত হয়ে পড়ছে। এ কারণে সচেতন অভিভাবকেরা গভীর উদ্বেগ ও শঙ্কার মধ্যে রয়েছেন। র‌্যাব ও পুলিশের অভিযানে মাদক বিক্রেতা ও সেবনকারীদের আটক করা হলেও কমছে না মাদকের কারবার। বরং দিনে দিনে আরো ভয়াবহ আকারে বিস্তার ঘটছে মাদকের। এখন পাড়া-মহল্লায় বিক্রি হচ্ছে মাদকদ্রব্য। মাদক বিক্রেতা ও সেবনকারীদের গভীর রাত পর্যন্ত পাড়া মহল্লার রাস্তা-ঘাটে ঘুরে বেড়াতে দেখা যায়। নানা কৌশলে সেবনকারীদের কাছে পৌঁছে দেওয়া হচ্ছে মাদকদ্রব্য।

অনুসন্ধানকালে, কুমারখালী পৌর এলাকার হরিজন কলোনীর সামনের রাস্তায় দাঁড়িয়ে প্রকাশ্যে টাকা ও মাদকদ্রব্য লেনদেন করতে দেখাযায়। সন্ধ্যা নামলেই ওই এলাকায় মাদকদ্রব্যের সন্ধানে আসে ক্রেতারা। হরিজন করোনীতে নারীদের বিরুদ্ধেও মাদকের কারবারের অভিযোগ রয়েছে। শহরের বিভিন্ন ঔষধের ফার্মেসীতে নেশার বড়ি বিক্রি হচ্ছে। টাকা দিলেই ট্যাপেন্টা ট্যাবলেট দিয়ে দেওয়া হচ্ছে মাদকসেবীদের কাছে। মাদকসেবীরা প্রকাশ্যে ঘুরে বেড়ালেও সহিংস আচরণের কারণে মাদক বিক্রেতা ও সেবীদের বিরুদ্ধে এলাকার মানুষ কেউ কিছু বলতে সাহস পায়না।

সম্প্রতি উপজেলার নন্দলালপুর ইউনিয়নের একজন অভিভাবক তার মাদকসেবী ছেলেকে টাকা না দেওয়ায় এবং সংশোধন হতে বলার কারণে বাবাকে মারধর শুরু করে। বাবাকে বাঁবাতে গেলে মায়ের শরীরও জখম হয় ওই ছেলে লাঠির আঘাতে। মাদকাসক্ত ছেলেদের হাতে অমানুষিক নির্যাতনের শিকার হয়ে অভিভাকেরা নিরবে কান্নাকাটি করলেও তা দেখার কেউ নেই। বরং তারা সামাজিকভাবে বঞ্চনা শিকার হচ্ছেন স্বজনসহ এলাকাবাসীদের কাছে।

খোঁজ নিয়ে জানাগেছে, সদকী ইউনিয়নের এক গৃহবধু ছাগল ও হাঁস-মুরগী বিক্রি করে কিছু টাকা গচ্ছিত রেখেছিলেন তার ব্যক্তিগত আলমারির ড্রয়ারে। কিন্তু মাদকাসক্ত স্বামী তার গচ্ছিত টাকা জোরপূর্বক ছিনিয়ে নিয়ে বাড়ী থেকে বের হয়ে যায়। পরে ওই গৃহবধু কৌশলে স্বামীর খোঁজ করতে গিয়ে মাদকাসক্ত আরেক যুবকের বাড়ির একটি কক্ষের মধ্যে স্বামীকে ইয়াবা সেবনরত অবস্থায়  দেখতে পান। এ ঘটনায় ওই গৃহবধু স্থানীয় গণ্যমান্য ব্যক্তিদের জানালে কেউ তার মাদকাসক্ত স্বামীকে শাসন করতে এগিয়ে আসেনি। এখনো পর্যন্ত স্বামীকে মাদকের গ্রাস থেকে ফিরিয়ে আনতে এলাকাবাসীদের দ্বারে দ্বারে ঘুরে বেড়াচ্ছেন ওই গৃহবধু। নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক স্থানীয় বাসিন্দাদের অনেকেই জানান, শহর ও গ্রামাঞ্চলে মাদক বিক্রেতা ও সেবনকারীদের প্রকাশ্যেই ঘুরে বেড়াতে দেখা যায়। বিভিন্ন চা-স্টলে বসে সময় কাটাতে দেখা যায়। আর কিছু কিছু চা-স্টল থেকেই মাদকের হাত বদল হয়ে থাকে। ইউনিয়ন পরিষদের গ্রাম পুলিশ সদস্যরা এসব তথ্য জানলেও অজ্ঞাত কারণে তারা জনপ্রতিনিধি কিংবা থানা পুলিশকে তথ্য দিচ্ছেনা। বরং কিছু কিছু গ্রাম পুলিশ সদস্যকে মাদকসেবীদের সাথেই আড্ডা দিতে দেখাযায় বলে অভিযোগ করেছেন অনেকেই। একজন জনপ্রতিনিধি (কাউন্সিলর) নাম প্রকাশ না করার শর্তে জানান, কুমারখালী পৌর এলাকায় মাদকাসক্তদের সংখ্যা ব্যাপক হারে বেড়ে গেছে। আর এই মাদকাসক্তদের বিভিন্ন আড়ালে আবডালে বসে মাদক সেবন করতে দেখে ও তাদের সাথে ঘুরে কিশোর-যুবকেরাও মাদকাসক্ত হয়ে পড়ছে। অভিভাবকেরা উঠতি বসয়ের ছেলেদের নিয়ন্ত্রণ করতে পারছেনা। ওই জনপ্রতিনিধি আরো জানিয়েছেন, আগে মাদকদ্রব্যের সহজলভ্যতা দূর করতে হবে। তাই মাদক বিক্রেতাদের বিরুদ্ধে অভিযানসহ আইনানুগ ব্যবস্থা নেওয়া খুবই জরুরী। কুমারখালী থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) মজিবুর রহমান জানান, মাদকের বিরুদ্ধে সক্রিয় অভিযান অব্যাহত রয়েছে। মাদক বিক্রেতা ও সেবনকারী কাউকেই ছাড় দেওয়া হবেনা। তবে এ জন্য এলাকাবাসী যদি মাদক বিক্রেতাদের মাদক সহ অবস্থান ও সেবনকারীদের আসরের সঠিক তথ্য দিয়ে সহযোগীতা করেন তাহলে খুব দ্রুত মাদকমুক্ত করা সম্ভব।

করোনায় আক্রান্ত পরিবেশমন্ত্রী

ঢাকা অফিস ॥ করোনা ভাইরাসে (কোভিড-১৯) আক্রান্ত হয়েছেন পরিবেশ, বন ও জলবায়ু পরিবর্তন মন্ত্রী মো. শাহাব উদ্দিন। তিনি সম্মিলিত সামরিক হাসপাতালে (সিএমএইচ) ভর্তি হচ্ছেন বলে জানিয়েছে মন্ত্রণালয়। কোভিডের উপসর্গ থাকায় গত মঙ্গলবার রোগতত্ত্ব, রোগ নিয়ন্ত্রণ ও গবেষণা ইনস্টিটিউট (আইইডিসিআর) পরিবেশমন্ত্রীর নমুনা নিয়ে টেস্ট করলে গতকাল বুধবার দুপুরে ফলাফল পজিটিভ আসে বলেও জানান মন্ত্রণালয়ের সিনিয়র তথ্য কর্মকর্তা দীপংকর বর। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নির্দেশে তিনি সিএমএইচে ভর্তি হচ্ছেন বলেও জানান তথ্য কর্মকর্তা দীপংকর। মন্ত্রী তার দ্রুত আরোগ্য কামনা করে দেশবাসীর কাছে দোয়া চেয়েছেন। এর আগে মন্ত্রিসভার বেশ কয়েকজন সদস্য, সংসদ সদস্য এবং সচিব কোভিডে আক্রান্ত হন। মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক মন্ত্রী আ ক ম মোজাম্মেল হক, বাণিজ্যমন্ত্রী টিপু মুনশি, পার্বত্য চট্টগ্রাম মন্ত্রী বীর বাহাদুর, পানি সম্পদ প্রতিমন্ত্রী জাহিদ ফারুক কোভিডে আক্রান্ত হয়ে সুস্থ হয়েছেন। এ ছাড়া কোভিডে আক্রান্ত হয়ে প্রতিরক্ষা মন্ত্রণালয়ের সিনিয়র সচিব আব্দুল্লাহ আল মোহসীন চৌধুরী গত ২৯ জুনে সিএমএইচে চিকিৎসাধীন অবস্থায় ও লেজিসলেটিভ ও সংসদ বিভাগের দায়িত্বপ্রাপ্ত সচিব নরেন দাস ২১ জুলাই বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ে চিকিৎসাধীন অবস্থায় শেষ নিশ্বাস ত্যাগ করেন।

শোক দিবস উদযাপন উপলক্ষ্যে কুষ্টিয়া পৌর ৯নং ওয়ার্ড আওয়ামীলীগের প্রস্তুতি সভা

নিজ সংবাদ ॥ ১৫ আগষ্ট জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান এঁর শাহাদত বার্ষিকী ও জাতীয় শোক দিবস ২০২০ উদযাপন উপলক্ষ্যে, প্রস্তুতি সভা করেছে বাংলাদেশ আওয়ামীলীগ কুষ্টিয়া পৌর ৯নং ওয়ার্ড আওয়ামীলীগ। ১২ আগষ্ট বুধবার বিকেলে কুষ্টিয়া শহরের আড়–য়াপাড়াস্থ পৌরসভার সাবেক চেয়ারম্যান ম.আ রহিমের বাসভবন প্রাঙ্গনে এ প্রস্তুতি সভা অনুষ্ঠিত হয়। এতে সভাপতিত্ব করেন পৌর ৯নং ওয়ার্ড আওয়ামীলীগের সভাপতি হাজী মোঃ  আখতারুজ্জামান। পরিচালনা করেন ৯নং ওয়ার্ড আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক রইচ উদ্দিন আহমেদ। এ সময় উপস্থিত ছিলেন, আওয়ামীলীগ নেতা শওকত আলী টন, হাবিবুল হক পুলক, কাউন্সিলর সাবা উদ্দিন সওদাগর, গোলাম মোস্তফা, জেলা পরিষদের সদস্য জান্নাতুল মাওয়া রনি, সাবেক কাউন্সিলর বনানী হাসান, আওয়ামীলীগ নেত্রী সুফী আক্তার, আরীক মাহামেদ অন্তু, যুবলীগ নেতা রাকিবুজ্জামান সেতু প্রমুখ।

সাংবাদিকদের বিশেষ মর্যাদা হনন করেছে বিএনপি – তথ্যমন্ত্রী

ঢাকা অফিস ॥ বিএনপি ২০০৬ সালে সাংবাদিকদের বিশেষ মর্যাদা হনন করেছে বলে জানিয়েছেন তথ্যমন্ত্রী ও বাংলাদেশ সাংবাদিক কল্যাণ ট্রাস্টের ট্রাস্টি বোর্ডের চেয়ারম্যান ড. হাছান মাহমুদ। গতকাল বুধবার বিকেলে কাকরাইলের পিআইবি মিলনায়তনে জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ৪৫তম শাহাদতবার্ষিকী ও জাতীয় শোক দিবস উপলক্ষে আয়োজিত আলোচনা সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে এ কথা বলেন তিনি। আলোচনা সভাটি বিএফইউজে’র সহায়তায় বাংলাদেশ সাংবাদিক কল্যাণ ট্রাস্ট আয়োজন করে। তথ্যমন্ত্রী বলেন, বঙ্গবন্ধু সাংবাদিকবান্ধব ছিলেন। তিনি সাংবাদিকদের বিশেষ মর্যাদার আসনে বসিয়েছিলেন। কিন্তু ২০০৬ সালে খালেদা জিয়া কলমের এক খোঁচায় সাংবাদিকদের বিশেষ মর্যাদার আসন থেকে শ্রমিক বানিয়ে দিয়েছেন। তিনি আরো বলেন, আইনটি সংশোধন হচ্ছে। ইতোমধ্যেই সংশোধিত আইনটি নীতিগত অনুমোদন পেয়েছে। এই আইন মন্ত্রিসভা থেকে পার্লামেন্টে নিয়ে যাব। সাংবাদিকদের যে মর্যাদা হনন করা হয়েছিল সেটি ফিরিয়ে দেওয়া হবে। ড. হাছান মাহমুদ বলেন, এই মহামারিকালে সরকার সাংবাদিকদের সহায়তায় এগিয়ে এসেছে। ইতোমধ্যে প্রথম পর্যায়ে ১৫শ’ সাংবাদিককে সহায়তা দেয়া হয়েছে। দল-মত নির্বিশেষে এই সহায়তা দেয়া হয়েছে। যারা প্রেসক্লাবের গেটে দাঁড়িয়ে সরকারের সমালোচনা করে তাদেরও সহায়তা করা হয়েছে। এই সহায়তা অব্যাহত থাকবে বলেও উল্লেখ করেন মন্ত্রী। আলোচনা সভায় মূল প্রবন্ধ উপস্থাপন করেন বাংলাদেশ সাংবাদিক কল্যাণ ট্রাস্টের ব্যবস্থাপনা পরিচালক জাফর ওয়াজেদ। তিনি বলেন, বাঙালি জাতির জন্য আগস্ট একটি শোকের মাস। ’৭৫ পরবর্তীতে বঙ্গবন্ধুর নাম মুছে ফেলার চেষ্টা হয়েছিল কিন্তু সেটা সম্ভব হয়নি। তিনি আরো আলোকিত হয়ে উঠেছেন। পুরো মানচিত্র জুড়েই রয়েছেন তিনি। সভাপতির বক্তব্যে তথ্য সচিব কামরুন নাহার বলেন, বঙ্গবন্ধু এবং বাংলাদেশ একই সূত্রে গাঁথা। বঙ্গবন্ধুর স্বপ্ন ছিল ক্ষুধা ও দারিদ্রমুক্ত দেশ গড়ার। তার সুযোগ্য কন্যা সেটি করছেন। আলোচনা সভায় বিএফইউজে’র সভাপতি মোল্লা জালাল বলেন, বঙ্গবন্ধুর নামে অনেক সংগঠন গড়ে উঠেছে। এগুলোকে নিয়ন্ত্রণে আনতে হবে। জাতীয় প্রেসক্লাবের সভাপতি সাইফুল আলম, আগস্ট মাস ঘটনাবহুল মাস। এই আগস্ট মাসে শেখ কামাল ও ফজিল্লাতুন্নেছা মুজিবের জন্ম এবং এই আগস্টে বঙ্গবন্ধুকে হত্যা করা হয়েছে। তাই এই মাস এলেই আবেগআপ্লুত হই। বঙ্গবন্ধু না আসলে আমরা পতাকা পেতাম না। অথচ বঙ্গবন্ধুর জীবনাচার আমরা কতটা অনুসরণ করছি। তিনি সারাজীবন গণতন্ত্রের জন্য সংগ্রাম করেছেন। তিনি মানুষের মুক্তি চেয়েছিলেন এজন্য একাধিকবার তাকে জেলে যেতে হয়েছে। তাই তার জীবন সম্পর্কে শিক্ষা নিতে হলে বঙ্গবন্ধুর জীবনী নিয়ে লেখা তিনটি বই সবাইকে পড়তে হবে এবং তাকে স্মরণ করে আমাদের এগিয়ে যেতে হবে। ১৫ আগস্টের শহীদদের স্মরণ করে প্রেসক্লাবের সাধারণ সম্পাদক ফরিদা ইয়াসমিন বলেন, বঙ্গবন্ধু মানেই বাংলাদেশ। আমাদের আত্মপরিচয়ের ঠিকানা বঙ্গবন্ধু। তিনি বলেন, পাঠ্যপুস্তকে বঙ্গবন্ধুকে নিয়ে আসতে হবে। ৭ মার্চের ভাষণের প্রতিটি শব্দ নিয়ে গবেষণা করা যায়। বঙ্গবন্ধু তার আপন আলোয় উদ্ভাসিত হবেন। তাকে ছাড়া বাংলাদেশ হতো না। বিএফইউজে’র মহাসচিব শাবান মাহমুদ বলেন, বঙ্গবন্ধু এই দেশ স্বাধীন করতে আমৃত্যু কাজ করেছেন, পুরো জাঁতি তার প্রতি ঋণী, যারা এটা অস্বীকার করেন তাদের এ দেশে বসবাস করার কোন অধিকার নেই। ডিইউজের সভাপতি কুদ্দুস আফ্রাদ বলেন, বঙ্গবন্ধুকে নিয়ে অনেক লেখালেখি হচ্ছে, তবে সেটি নিয়ে গবেষণা নেই। আমাদের গবেষণা বাড়াতে হবে। তিনি বলেন, বঙ্গবন্ধু নিয়ে ইনিয়ে বিনিয়ে যারা কথা বলতে চাচ্ছে তাদের বিরুদ্ধে আমাদের সোচ্চার হতে হবে। সাধারণ সম্পাদক সাজ্জাদ আলম খান তপু বলেন, যারা বঙ্গবন্ধু হত্যার সেই সময় খলনায়কের ভূমিকায় ছিলেন তাদের মরণোত্তর বিচার দাবি করেন তিনি। বঙ্গবন্ধু সাংবাদিকদের বিশেষ সম্মান দিয়েছিলেন, আমরা সেটি ফিরে পেতে চাই। সাংবাদিক কাসেম হুমায়ুন বলেন, বঙ্গবন্ধু জীবনে কোন লোভ-লালসা ছিল না। লোভ-লালসা থাকলে তিনি দেশ স্বাধীন করতে পারতেন না। তথ্য মন্ত্রণালয়ের সচিব ও বাংলাদেশ সাংবাদিক কল্যাণ ট্রাস্টের ট্রাস্টি বোর্ডের ভাইস চেয়ারম্যান কামরুন নাহারের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত আলোচনা সভাটি সঞ্চালনা করেন বাংলাদেশ সাংবাদিক কল্যাণ ট্রাস্টের উপ-পরিচালক মোহাম্মদ মনিরুল ইসলাম কবীর।

করোনা এবং আম্পান মোকাবেলায় আন্তরিকতার সাথে অর্পিত দায়িত্ব পালনের মহান প্রচেষ্টায় যশোর সেনানিবাস

প্রাণঘাতী করোনা এবং আম্পান মোকাবেলায় আন্তরিক মনোভাব  দেখিয়ে জনগণকে সচেতন করে অর্পিত দায়িত্ব পালনের সর্বোচ্চ  চেষ্টা করে যাচ্ছে বাংলাদেশ সেনাবাহিনীর ৫৫ পদাতিক ডিভিশনের সেনাসদস্যরা। এরই ধারাবাহিকতায় বৃহত্তর যশোর অঞ্চলের জনগণকে সচেতন করার উদ্দেশ্যে ধৈর্য, সহনশীলতা ও সৎ সাহসের পরিচয় দিয়ে জনগণের পাশে থেকে  কাঁধে করে খাদ্য সহায়তা নিয়ে মানুষের বাড়ি বাড়ি গিয়ে পৌঁছে দিয়েছে সেনা সদস্যরা। পাশাপাশি বেসামরিক প্রশাসন ও অন্যান্য আইন শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর সঙ্গে সমন্বয় রেখে লকডাউন কার্যকর ও চিকিৎসা কার্যক্রমে সহায়তা করে আসছে সেনাবাহিনী। এছাড়াও সরকারী সকল নির্দেশনা বাস্তবায়ন, গণপরিবহন মনিটারিং, মাস্ক ও হ্যান্ড স্যানিটাইজার ব্যবহারে সাধারণ মানুষকে উৎসাহিত করার পাশাপাশি জনস্বার্থে সকল কল্যাণমূলক কার্যক্রম অব্যাহত রয়েছে। অন্যদিকে আম্পান মোকাবেলায় উপকূলবর্তী সাতক্ষীরার শ্যামনগর এবং খুলনার কয়রায় দ্রুত বেড়িবাঁধ মেরামতের নিরন্তর প্রচেষ্টা অব্যাহত রাখার পাশাপাশি অসহায় মানুষের মাঝে সুপেয় পানি বিতরণ, চিকিৎসা সহায়তা প্রদান এবং ঘর-বাড়ী মেরামতসহ নানামূখী জনকল্যাণমূলক কার্যক্রম অব্যাহত রেখেছে যশোর  সেনানিবাসের সেনাসদস্যরা। মহামারী এই করোনায় প্রথম সারির  যোদ্ধা হিসেবে সেবা ও ত্যাগের মহিমা নিয়ে পরিস্থিতি স্বাভাবিক না হওয়া পর্যন্ত তাদের উপর অর্পিত এই দায়িত্ব পালন করে যাবে প্রতিটি সেনাসদস্য। সংবাদ বিজ্ঞপ্তি

কলেজে ভর্তি হওয়া হলোনা হালিমের

গাংনী প্রতিনিধি ॥ কলেজে ভর্তি হওয়া হলোনা আব্দুল হালিমের। একাদশ শ্রেণীতে ভর্তি জন্য কলেজে যাওয়ার পথে এক মর্মান্তিক সড়ক দূর্ঘটনায় জীবন দিতে হলো তাকে। হতোভাগা আব্দুল হালিম (১৭) মেহেরপুর সদর উপজেলার কোলা গ্রামের জাব্বারুল ইসলামের ছেলে। সে এবারের এসএসসি পরীক্ষায় স্থানীয় একটি মাধ্যমিক বিদ্যালয় থেকে উত্তীর্ণ হয়েছিল। মেহেরপুর সরকারী কলেজে ভর্তির জন্য যাওয়ার পথে সড়ক দূর্ঘটনায় প্রাণ দিতে হলো তাকে। মঙ্গলবার দিবাগত রাত ৯টার দিকে রাজশাহী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় হালিমের মৃত্যু হয়। পারিবারিক সূত্র জানায়,হালিম একাদশ শ্রেণীতে  ভর্তির জন্য মঙ্গলবার সকালের দিকে একটি মোটরসাইকেলযোগে বাড়ি থেকে মেহেরপুর সরকারী কলেজে যাচ্ছিল। পথি মধ্য মোটরসাইকেলের নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে একটি অটোবাইকের সাথে মুখোমুখি ধাক্কা লাগে তার। ওই ধাক্কায় ছিটকে গিয়ে সড়কের পাশের বৈদ্যুতিক পোলের সাথে হালিমের মাথায় আঘাত লাগলে, গুরুতর আহত হয়। পথচারীরা তাকে উদ্ধার করে মেহেরপুর জেনারেল হাসপাতালে নেয়। এসময় তার শারীরিক অবস্থার অবনতি দেখে, কর্তব্যরত ডাক্তার রাজশাহী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে রেফার্ড করেন। মঙ্গলবার রাত ৯টার দিকে চিকিৎসাধীন অবস্থায় তার মৃত্যু হয়। মেহেরপুর সদর থানার ওসি শাহ দারা খান জানান, বেপরোয়াভাবে মোটরসাইকেল চালানোর কারণেই দূর্ঘটনা ঘটেছে। এদিকে আব্দুল হালিমের মৃত্যুতে তার পরিবার ও সহপাঠীদের মধ্যে চলছে শোকের মাতম।

রুশ ভ্যাকসিনে কেন আস্থা নেই বিশেষজ্ঞদের?

ঢাকা অফিস ॥ বিশ্বের অন্যান্য দেশকে পেছনে ফেলে যখন রাশিয়া নিজেদের বিশেষজ্ঞদের দ্বারা কোভিড-১৯ এর ভ্যাকসিন আবিষ্কার কথা জানলো তখনই নানা প্রশ্ন ঘুরপাক খাচ্ছে নানা মহলে। করোনা ভ্যাকসিন আবিষ্কারের বিষয়ে রাশিয়ার দাবি খারিজ করে দিয়েছে কানাডা। এদিকে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা এখনো স্পুটনিক-৫ নামের এ ভ্যাকসিন অনুমোদন দেয়নি। ডব্লিউএইচওর মতে, বাজারজাতকরণের আগে সুরক্ষার পাশাপাশি যাবতীয় তথ্য সর্বোচ্চ খতিয়ে দেখতে হবে। নয়তো মহাবিপত্তির আশঙ্কা থেকেই যাবে। এ ভ্যাকসিন নিয়ে এখনও কোনো ক্লিনিকাল ট্রায়াল প্রতিবেদন প্রকাশ করেনি রাশিয়া। সাধারণত, শেষ ধাপে নানা বয়সী হাজারো মানুষকে ভ্যাকসিন দেয়ার নিয়ম রয়েছে। তার ফলাফল সম্পর্কে পুরোপুরি নিশ্চিত হওয়ার পরই ভ্যাকসিনকে ছাড়পত্র দেয়া হয়। আর ছাড়পত্র দেয়ার আগে সুরক্ষা ও কার্যকারিতা সম্পর্কে যাবতীয় তথ্যের বিচার করার বিষয়টি দেখভাল করে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা। তবে মস্কোর দাবি, তারা কয়েক হাজার লোকের ওপর ভ্যাকসিনের পরীক্ষা চালিয়েছে। মস্কোভিত্তিক অ্যাসোাসিয়েশন অব ক্লিনিকাল ট্রায়ালস অর্গানাইজেশন চলতি সপ্তাহেই স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়কে অনুরোধ করেছিল, এ ভ্যাকসিন নিয়ে তাড়াহুড়ো না করতে।  অন্যদিকে ভ্যাকসিন আবিষ্কারে বিশ্বের শতাধিক দেশ কাজ করে যাচ্ছে। এক একটি ভ্যাকসিনের পরীক্ষা-পর্ব সারতেই সাধারণত বছরের পর বছর সময় লেগে যায়। তবে কোভিড-১৯ এর ক্ষেত্রে তা ১২ থেকে ১৮ মাসে নামিয়ে আনার লক্ষ্য নিয়ে এগিয়ে যাচ্ছেন বিজ্ঞানীরা। আমেরিকার প্রখ্যাত বিশেষজ্ঞ অ্যান্থনি ফাউচি সম্প্রতি বলেছিলেন, চীন ও রাশিয়া মানবদেহে ভ্যাকসিন দেয়ার আগে তা ভালোভাবে পরীক্ষা করে দেখবে। আরেক বিশেষজ্ঞ পিটার ক্রমসনারের মতে, এ ভ্যাকসিন নিয়ে দীর্ঘ পরীক্ষা দরকার। তা না করে বাজারে ছাড়া হলে দায়িত্বজ্ঞানহীন আচরণ হবে বলে সতর্ক করেন তিনি। রুশ ভ্যাকসিনের সুরক্ষার দিকটা নিয়ে রীতিমতো চিন্তিত যুক্তরাষ্ট্র, জার্মানিসহ আরও কয়েকটি দেশ। তারা বলছে, তাড়াহুড়ো না করে আরও পরীক্ষা-নিরীক্ষা করে দেখতে হবে এর কার্যকারিতা কতটুকু।

বঙ্গবন্ধুর ৪৫তম শাহাদত বার্ষিকী উপলক্ষে “বিশেষজ্ঞ স্বাস্থ্য  ক্যাম্প”

বঙ্গবন্ধুকে হত্যা করে দেশকে নেতৃত্ব শুন্য করতে চেয়েছিল পাকিস্তানী দোসররা – ডা: ইফতেখার মাহমুদ

নিজ সংবাদ ॥ জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ৪৫তম শাহাদত বার্ষিকী উপলক্ষে ‘ইয়াসিন-মাহমুদা স্মৃতি পরিষদ’র উদ্যোগে “বিশেষজ্ঞ স্বাস্থ্য ক্যাম্প” অনুষ্ঠিত হলো। গতকাল বুধবার মিরপুর উপজেলার বারুইপাড়া ইউনিয়নের গোরদহ গ্রামে এই চিকিৎসা ক্যাম্প অনুষ্ঠিত হয়। এ উপলক্ষে বারুইপাড়া ইউনিয়নের প্যানেল চেয়ারম্যান বিশিষ্ট সমাজ সেবক উফান আলী মালিথার বাড়ির উঠোনে ‘করোনা বিষয়ক’ আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়। সভায় সভাপতিত্ব করেন উফান আলী মালিথা। প্রধান অতিথি ছিলেন কুষ্টিয়ার কৃতি সন্তান কুষ্টিয়া মেডিকেল কলেজের প্রতিষ্ঠাতা প্রিন্সিপাল ও ইয়াসিন-মাহমুদা স্মৃতি পরিষদের সভাপতি প্রফেসর ডাঃ ইফতেখার মাহমুদ। অনুষ্ঠানে উপস্থিত থেকে বক্তব্য রাখেন কুষ্টিয়া মেডিকেল কলেজের সাবেক সহযোগী অধ্যাপক শিশু বিশেষজ্ঞ ডাঃ জমির উদ্দিন, বঙ্গবন্ধু পরিষদ কুষ্টিয়ার প্রতিষ্ঠাতা সাধারন সম্পাদক ও কুষ্টিয়া প্রেসক্লাবের সাবেক সাধারন সম্পাদক শামসুর রহমান বাবু ও ‘ইয়াসিন-মাহমুদা স্মৃতি যুব পরিষদ‘র সাধারন সম্পাদক মওদুদ আহমেদ রাজিব। এসময় উপস্থিত ছিলেন ইসলামিয়া কলেজের ব্যবস্থাপনা বিভাগের শিক্ষক শহিদুল ইসলাম, মিরপুর উপজেলা আওয়ামীলীগের নাট্য বিষয়ক সম্পাদক তফিজ উদ্দিন খান। আলোচনা সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে প্রফেসর ডাঃ ইফতেখার মাহমুদ বলেন, ১৫আগষ্ট জাতির জনককে পরিবারসহ হত্যা করা হয়েছিল। এই মাসটি বাঙ্গালী জাতির জন্য শোকাবহ মাস। এই মুহুর্তে বঙ্গবন্ধুসহ তাঁর পরিবারের  নিহতদের প্রতি গভীর সমবেদনা এবং মহান আল্লাহর দরবারে দোয়া কামনা করছি। তিনি বলেন, বঙ্গবন্ধুকে হত্যা করে দেশকে নেতৃত্ব শুন্য করতে চেয়েছিল পাকিস্তানী দোসররা। কিন্তু বঙ্গবন্ধুর কন্যা বর্তমান প্রধান মন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতত্বে বঙ্গবন্ধুর চেতনার শক্তির মানুষেরা আবারো রুখে দাঁড়িয়ে দেশকে বঙ্গবন্ধুর স্বপ্নের দেশে রুপায়িত করতে কাজ করে যাচ্ছে। তিনি বলেন, মুজিব আদর্শের সৈনিকেরা ত্যাগী ও দেশ প্রেমিক হয়ে থাকে। করোনা মোকাবিলায় সেই যোগ্যতার যথার্থ প্রমান রাখতে সক্ষম হয়েছে। তিনি আরো বলেন- করোনা বিষয়ে আমাদের বিশেষভাবে সচেতন হতে হবে এবং  সরকারী সকল নির্দেশনা মেনে চলতে হবে। করোনাকে জয় করে দেশের উন্নয়নের ধারাবাহিকতা রক্ষা করতে হবে তানা হলে আমরা পিছিয়ে পড়বো।  ডাঃ ইফতেখার মাহমুদ বলেন- আল্লাহপাক আমাকে চিকিৎসা বিজ্ঞানের জ্ঞান দিয়ে মানুষের সেবার জন্য মনোনিত করেছেন। জীবনের দীর্ঘ সময় মানুষের সেবাই কাজ করেছি। এখন অবসর জীবনে আমি একেবারে অবহেলিত জনপদের প্রান্তিক মানুষদের চিকিৎসা সেবা দিতে চাই। তাই আপনাদের এই পল্লী এলাকায় ছুটে এসেছি। আমি জানি মানুষের সেবাদানের মধ্য দিয়ে সৃষ্টিকতার সন্তষ্টি অর্জন সম্ভব আর তাই জীবনের বাকী সময়টা বাবা-মায়ের নামে প্রতিষ্ঠানের মাধ্যমে এই অঞ্চলের মানুষদের সেবা দিয়ে যাবো। তিনি এলাকাবাসীর নিকট দোয়া কামনা করে বলেন, আপনাদের দোয়া এবং ভালবাসা নিয়ে জীবনের বাকী সময়টা পার করতে চাই। পরে তিনি ৩ শতাধিক রোগীকে চিকিৎসা সেবা প্রদান করেন। এসময় বিশেষজ্ঞ চিকিৎসকদের মধ্যে কুষ্টিয়া মেডিকেল কলেজের সাবেক সহযোগী অধ্যাপক ও শিশু বিশেষজ্ঞ ডাঃ জমির উদ্দিন ও বিশেষজ্ঞ চিকিৎসক ডাঃ চৌধুরী সারওয়ার জাহান রোগী দেখেন ও ব্যবস্থাপত্র প্রদান করেন।

দিনব্যাপী নেতৃবৃন্দের সাথে  জেলা বিএনপির সভাপতি মেহেদী রুমীর মতবিনিময়

গণতন্ত্র পুনরুদ্ধারে দেশে পরিবর্তন আসবে, হতাশার কোনো জায়গা  নেই। সেই পরিবর্তনের জন্যই কাজ করতে হবে। গতকাল বুধবার দিনব্যাপী জেলা বিএনপির কার্যালয়ে জেলা এবং উপজেলার বিভিন্ন পর্যায়ের বিএনপি ও অঙ্গসংগঠনের নেতৃবৃন্দের সাথে মতবিনিময়কালে এসব কথা বলেন বিএনপির চেয়ারপার্সন বেগম খালেদা জিয়ার উপদেষ্টা ও কুষ্টিয়া জেলা বিএনপি’র সভাপতি সাবেক সংসদ সদস্য বীর মুক্তিযোদ্ধা সৈয়দ মেহেদী আহমেদ রুমী। তিনি আরো বলেন, এ দেশের  বেশিরভাগ মানুষ গণতান্ত্রিক অবস্থা তারা ফিরে পেতে চায়, গণতন্ত্রকে ফিরে পেতে চায়, অধিকার ফিরে পেতে চায়, ভোট দিতে চায়। কিন্তু হচ্ছে না, পারা যাচ্ছে না। তিনি বলেন, বর্তমানে মানুষের জানমালের নিরাপত্তা নেই। মহামারী করোনার আঘাতে জীবন আরও দুর্বিষহ আকার ধারণ করছে। সরকার মানুষের লাশের ওপর দিয়ে রাজত্ব কায়েম করতে চায়। ব্যর্থ সরকারের পতন না হলে মানুষের মুক্তি মিলবে না। তাই মানুষের জানমালের নিরাপত্তা জন্য সবার উচিত ঐক্যবদ্ধভাবে এই অবৈধ সরকারের পতন ঘটানো। বলেন, সরকারের ব্যর্থতার কারণে করোনা মহামারীতে সুচিকিৎসা মানুষ পাচ্ছে না। হাসপাতালে সিট নেই, অক্সিজেন নেই, ভেন্টিলেটর নেই। তাহলে সরকার কী দিয়ে করোনা  মোকাবেলা করছে। করোনা মোকাবেলায় সরকার অত্যন্ত নির্লজ্জভাবে ব্যর্থতার পরিচয় দিয়েছে। এদিকে জেলা বিএনপির কার্যালয়ে বিএনপির প্রতিষ্ঠাতা শহীদ রাষ্ট্রপতি জিয়াউর রহমান ও সাবেক প্রধানমন্ত্রী বেগম খালেদা জিয়ার কনিষ্ঠ পুত্র আরাফাত রহমান কোকোর ৫১তম জন্মবার্ষিকী উপলক্ষে দোয়া মাহফিলের আয়োজন আয়োজন করা হয়। এসব সময় আরো উপস্থিত ছিলেন খোকসা পৌর বিএনপির সাধারণ সম্পাদক নাফিজ আহমেদ খান রাজু, জেলা বিএনপির সাংগঠনিক সম্পাদক খন্দকার শাসসুজ্জাহিদ, যুব বিষয়ক সম্পাদক মেজবাউর রহমান পিন্টু, সহ-আইন বিষয় সম্পাদক এ্যাড. শাতিল মাহমুদ, জেলা সেচ্ছাসেবকদলের সভাপতি আব্দুল হাকিম মাসুদ, জেলা যুবদলের সহ-সভাপতি অহিদুল ইসলাম সাবু, যুগ্ম সম্পাদক আবুল কালাম আজাদ, জেলা কৃষকদলের সহ-সভাপতি ইবাদত আলী, সাধারণ সম্পাদক মোকারম হোসেন মোকা, যুগ্ম সম্পাদক হারুন উর রশিদ, জেলা ছাত্রদলের সাংগঠনিক সম্পাদক রোকনুজ্জামান  রাসেল, যুবদল  নেতা আমিনুল ইসলাম চঞ্চল, মকসেদুল হক কল্লোল, ফিরোজ আহমেদ তপন, রাকিবুল ইসলাম শান্ত, আরিফুল ইসলাম, আমিরুল ইসলাম, নয়ন, কামু, মনোয়ার, শাহিন, জেলা সেচ্ছাসেবক দলের সহ-সভাপতি এডিন মাহমুদ, যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক বকুল আলী, যুগ্ম সম্পাদক সোহানুর রহমান লিংকন প্রমুখ। সংবাদ বিজ্ঞপ্তি

খালেদার নেতৃত্বে মানুষ অধিকার ফিরে পাবে – রিজভী

ঢাকা অফিস ॥ বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার নেতৃত্বে এ দেশের মানুষ তাদের হারানো অধিকার আবারও ফিরে পাবে বলে মন্তব্য করেছেন দলের সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী। গতকাল বুধবার আরাফাত রহমান কোকোর ৫১তম জন্মবার্ষিকী উপলক্ষে বিএনপির ক্রীড়া বিষয়ক সম্পাদক আমিনুল হকের উদ্যোগে মিরপুরে মোহাম্মদীয়া ইসলামিয়া মাদ্রাসা ও এতিম খানায় খাবার বিতরণের পর এ কথা বলেন তিনি। এ সময় বিএনপি চেয়ারপারসনের বিশেষ সহকারী শামসুর রহমান শিমুল বিশ্বাস সহ স্থানীয় অন্যান্য নেতৃবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন। পাঁচটি মাদরাসা ও এতিমখানায় খাবার বিতরণ করেন আমিনুল হক। বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়াকে বালু ভর্তি ট্রাক দিয়ে বাড়িতে বন্দী করে রাখার বীভৎস দৃশ্য তার কনিষ্ঠপুত্র আরাফাত রহমান কোকো সহ্য করতে পারেননি উল্লেখ করে রিজভী বলেন, আরাফাত রহমান কোকো আমাদের মাঝ থেকে অনেক দুঃসময়ে চলে গেছেন। যখন তার মাকে বালু ভর্তি ট্রাক দিয়ে বাড়িতে বন্দী করে রাখা হয়েছিল, সেই বীভৎস পরিস্থিতি তিনি সহ্য করতে পারেননি। তিনি দেশের বাইরে মালয়েশিয়ায় ছিলেন। সেখানে বসে তিনি এসব দেখে এতটা ব্যথিত হয়েছিলেন যে, পৃথিবীর মাঝে আর বেঁচে থাকতে পারেননি। রিজভী বলেন, এ দেশের স্বাধীনতার ঘোষক শহীদ প্রেসিডেন্ট জিয়াউর রহমান ও এ দেশের চারবারের নির্বাচিত প্রধানমন্ত্রী দেশনেত্রী খালেদা জিয়ার কনিষ্ঠপুত্র আরাফাত রহমান কোকোর আজ (গতকাল বুধবার) ৫১তম জন্মবার্ষিকী। তার জন্মবর্ষ উপলক্ষে আজকে এতিমদের মাঝে খাবার বিতরণ করার এই আয়োজন করা হয়েছে। তিনি বলেন, আরাফাত রহমান একজন ক্রীড়া সংগঠক ও সামাজিক ক্রীড়া ব্যক্তিত্ব ছিলেন। যখন তার পরিবারের ওপর জুলুম-নির্যাতন এবং তার মাকে যখন বন্দী করে রাখা হয়েছিল তখন সন্তান হিসেবে তিনি সেটা সহ্য করতে পারেননি। বিএনপির সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব বলেন, গত ১২ বছর যাবত জাতীয়বাদী শক্তিকে দমন-পীড়ন করে রাখা হয়েছে সেটা নজিরবিহীন। একটি দানব সরকার যা করে তার সকল কিছুকে ছাড়িয়ে গেছে এই সরকার। মানুষ নির্বিঘেœ চলাচল করতে ভয় পাচ্ছে। স্বাধীন মতামত প্রকাশ করতে ভয় পাচ্ছে। তাই মানুষের নির্বিঘেœ চলাচল করা এবং মতামত প্রকাশের স্বাধীনতা অর্জনের জন্য আমাদের আজকে যে লাড়াই সেই লড়াই অব্যাহত থাকবে। আমরা আজকে অঙ্গীকার করছি দেশনেত্রী খালেদা জিয়ার নেতৃত্বে এ দেশের মানুষ আবার তাদের হারানো অধিকার ফিরে পাবে।

 

স্বাস্থ্যবিধি অনুসরণ করে জাতীয় শোক দিবসের কর্মসূচি

ঢাকা অফিস ॥ বৈশ্বিক মহামারি করোনাভাইরাস (কোভিড-১৯) এর কারণে সামাজিক দূরত্ব নিশ্চিতপূর্বক স্বাস্থ্যবিধি মেনে ১৫ আগস্ট জাতীয় শোক দিবসের কর্মসূচি ঘোষণা করা হয়েছে। স্বাধীনতার মহান স্থপতি জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ৪৫তম শাহাদৎ বার্ষিকী ও জাতীয় শোক দিবস পালনের কর্মসূচি চূড়ান্তকরণ সংক্রান্ত আন্তঃমন্ত্রণালয়ের ভার্চুয়াল সভায় এ কর্মসূচি গৃহীত হয়। কর্মসূচির মধ্যে রয়েছে ১৫ আগস্ট শনিবার সরকারি, আধা-সরকারি, স্বায়ত্তশাসিত প্রতিষ্ঠান, শিক্ষা প্রতিষ্ঠান ও বেসরকারি ভবসমূহে জাতীয় পতাকা অর্ধনমিত থাকবে। সকাল সাড়ে ৬টায় ধানমন্ডি ৩২ নম্বরে বঙ্গবন্ধু স্মৃতি জাদুঘরে জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের প্রতিকৃতিতে পুষ্পস্তবক অর্পণ এবং মোনাজাত। এদিন সকাল সাড়ে ৭টায় ঢাকার বনানীস্থ কবরস্থানে ১৫ আগস্ট শাহাদৎ বরণকারী জাতির পিতার পরিবারের সদস্যবৃন্দ ও অন্যান্য শহিদদের কবরে পুষ্পস্তবক অর্পণ ও এবং ফাতেহা পাঠ ও মোনাজাত। একই দিন সকাল ১০টায় গোপালগঞ্জের টুঙ্গিপাড়ায় জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের সমাধিতে ফাতেহা পাঠ, পুষ্পস্তবকক অর্পণ এবং মোনাজাত অনুষ্ঠিত হবে। টুঙ্গিপাড়ায় জাতির পিতার সমাধিস্থলে সামাজিক দূরত্ব নিশ্চিতপূর্বক স্বাস্থ্যবিধি মেনে বিশেষ দোয়া মাহফিলেরও আয়োজন করা হয়েছে। সামাজিক দূরত্ব নিশ্চিতপূর্বক স্বাস্থ্যবিধি মেনে সারা দেশের মসজিদসমূহে বাদ যোহর বিশেষ মোনাজাত এবং মন্দির, গির্জা, প্যাগোডা ও অন্যান্য ধর্মীয় প্রতিষ্ঠানে সুবিধাজনক সময় বিশেষ প্রার্থনা। জাতীয় শোক দিবসে বাংলাদেশ বেতার এবং বাংলাদেশ টেলিভিশন বিশেষ অনুষ্ঠানের আয়োজন করবে। এছাড়াও জাতীয় দৈনিক ও সাময়িকীতে ক্রোড়পত্র প্রকাশ করবে। পোস্টার মুদ্রণ ও বিতরণ এবং বঙ্গবন্ধুর ওপর প্রামাণ্য চলচ্চিত্র প্রদর্শন করবে। শিক্ষা প্রতিষ্ঠান/গ্রোথ সেন্টারসহ গুরুত্বপূর্ণ স্থানে জাতীয় শোক দিবসের পোস্টার স্থাপন ও এলইডি বোর্ডের মাধ্যমে প্রচারের প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা করতে হবে। জাতীয় শোক দিবসের তাৎপর্য উল্লেখ করে বাংলাদেশ টেলিযোগাযোগ নিয়ন্ত্রণ কমিশনের মাধ্যমে ডাক ও টেলিযোগাযোগ বিভাগ সকল মোবাইল গ্রাহককে ক্ষুদে বার্তা প্রেরণ করবে। শিক্ষা প্রতিষ্ঠান, শিশু একাডেমি বা অনুরূপ প্রতিষ্ঠানের অনুরোধের ভিত্তিতে বঙ্গবন্ধু স্মৃতি জাদুঘর ভার্চুয়াল প্ল্যাটফর্ম ব্যবহার করে জাতীয় শোক দিবস ও বঙ্গবন্ধুর জীবনীভিত্তিক বক্তৃতার আয়োজন করতে পারে। বিভিন্ন মন্ত্রণালয়, অধিদপ্তর ও সংস্থা জাতীয় শোক দিবসের সঙ্গে সামঞ্জস্য রেখে স্ব-স্ব কর্মসূচি প্রণয়ন ও সামাজিক দূরত্ব নিশ্চিতপূর্বক স্বাস্থ্যবিধি মেনে বাস্তবায়ন করবে। জাতীয় শোক দিবসের অনুষ্ঠান আয়োজনের ক্ষেত্রে ভার্চুয়াল প্লাটফরম ব্যবহারকে অগ্রাধিকার দিতে হবে। জেলা ও উপজেলা পর্যায়ে যথাযোগ্য মর্যাদার সঙ্গে জাতীয় শোক দিবস পালনের জন্য সামাজিক দূরত্ব নিশ্চিতপূর্বক স্বাস্থ্যবিধি মেনে আলোচনা সভা ও দোয়া মাহফিল আয়োজন এবং জাতীয় শোক দিবসের সঙ্গে সঙ্গতি রেখে স্ব-স্ব কর্মসূচি প্রণয়ন ও বাস্তবায়ন। জেলা ও উপজেলায় আয়োজিত অনুষ্ঠানসমূহে সরকারি কর্মকর্তাগণের উপস্থিতি আবশ্যিকভাবে নিশ্চিত করতে হবে। জেলা ও উপজেলা প্রশাসন কর্তৃক আয়োজিত কর্মসূচিতে জেলা পরিষদ ও পৌরসভার অংশগ্রহণসহ দেশের সকল সিটি কর্পোরেশন, পৌরসভা ও ইউনিয়ন পরিষদ যথাযোগ্য মর্যাদায় জাতীয় শোক দিবস পালনের জন্য জাতীয় শোক দিবসের সঙ্গে সঙ্গতি রেখে স্ব-স্ব কর্মসূচি প্রণয়ন ও সামাজিক দূরত্ব নিশ্চিতপূর্বক স্বাস্থ্যবিধি মেনে বাস্তবায়ন করবে। জাতীয় শোক দিবসের অনুষ্ঠান আয়োজনের ক্ষেত্রে ভার্চুয়াল প্লাটফর্ম ব্যবহারকে অগ্রাধিকার দিতে হবে। বিদেশস্থ বাংলাদেশ মিশনসমূহে জাতীয় পতাকা অর্ধনর্মিত রাখা হবে এবং আলোচনা সভার আয়োজন করা হবে।

 

মাস্ক ব্যবহার না করলেই শাস্তি

কুমারখালীতে মোবাইল কোর্টের অভিযানে জরিমানা আদায়

কুমারখালী প্রতিনিধি ॥ করোনা ভাইরাস প্রতিরোধে সরকারি নির্দেশনা বাস্তবায়নে কুষ্টিয়ার কুমারখালীতে সংক্রামক রোগী নিয়ন্ত্রণ প্রতিরোধ ও নির্মুল আইনে মোবাইল কোর্ট পরিচালনা করা হয়েছে। গতকাল বুধবার দুপুরে উপজেলা নির্বাহী অফিসার ও নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট রাজীবুল ইসলাম খান কুমারখালী পৌর বাজারে মোবাইল কোর্ট পরিচালনা করেছেন। এ সময় সংক্রামক রোগ নিয়ন্ত্রণ প্রতিরোধ ও নির্মুল আইন ২০১৮ অনুযায়ী ১২টি মামলায় ৭ হাজার ৭০০ টাকা জরিমানা আদায়সহ মোবাইল কোর্টের কাজে বাধা দেওয়ায় দন্ডবিধি ১৮৬০ অনুযায়ী আরেকটি মামলায় ৫ হাজার টাকা জরিমানা আদায় করা হয়েছে। এ সময় উপজেলা নির্বাহী অফিসার বলেছেন- মাস্ক ব্যবহার অভ্যাসে পরিণত করতে হবে, ঘরের বাইরে আসলে মাস্ককে পোশাকের অংশ বিবেচনা করতে হবে। মাস্ক ব্যবহার না করলে কঠোর শাস্তি পেতে হবে, কোন নাম পরিচয় ব্যবহার করে শাস্তি এড়ানো যাবে না।

দৌলতপুরে দূবৃর্ত্তদের দেওয়া আগুনে সিএনজি পুড়ে ছাই

দৌলতপুর প্রতিনিধি ॥ কুষ্টিয়ার দৌলতপুরে দূবৃর্ত্তদের দেওয়া আগুনে সিএনজি পুড়ে ছাই হয়েছে। দৌলতপুর গার্লস হাইস্কুল পাড়ায় দূবৃর্ত্তরা সিএনজিতে আগুন লাগিয়ে দেয়। সিএনজি মালিক নজির আলী জানান, মঙ্গলবার রাত ১টার দিকে বাড়িতে রাখা সিএনজিতে পূর্ব শক্রতার জের ধরে দূবৃর্ত্তরা অগ্নিসংযোগ করে। এসময় জানতে পেরে নজির আলী ও তার প্রতিবেশীরা ঘটনাস্থলে ছুটে গেলে দূবৃর্ত্তরা পালিয়ে যায়। পরে আগুন নিয়ন্ত্রন করা গেলেও সিএিনজি পড়ে ছাই হয়ে যায়। এতে নজির আলীর প্রায় লক্ষ টাকা ক্ষতি হয়েছে বলে থানায় অভিযোগ দায়ের করা হয়েছে।

সিনহা হত্যা

 চার পুলিশসহ ৭ জন রিমান্ডে

ঢাকা অফিস ॥ কক্সবাজারের টেকনাফে মেজর (অব.) সিনহা মোহাম্মদ রাশেদ খান হত্যা মামলার আসামি চার পুলিশসহ ৭ জনের সাতদিনের রিমান্ড মঞ্জুর করেছেন আদালত। গতকাল বুধবার বেলা ১১টায় টেকনাফ উপজেলা জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট তামান্না ফারহার আদালত-৩ এ তাদের বিরুদ্ধে ৭ দিনের রিমান্ড মঞ্জুর করেন বিচারক। সিনিয়র আইনজীবী মোহাম্মদ মোস্তফা বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন। রিমান্ড পাওয়া অপর তিনজন হলেন, সিনহা হত্যা মামলায় পুলিশের দায়ের করা মামলার তিন সাক্ষী টেকনাফের বাহারছড়ার মারিশবুনিয়ার নুরুল আমিন, নিজাম উদ্দীন ও মোহাম্মদ আইয়াস। গত মঙ্গলবার দুপুরে তাদেরকে আদালতে হাজির করে ১০ দিনের রিমান্ড আবেদন করে র‌্যাব। এর আগে গ্রেফতার সাক্ষীরা গণমাধ্যমের কাছে দাবি করেছিলেন, এ হত্যার ঘটনা তারা কেউ নিজের চোখে দেখেননি। ঘটনার পর স্থানীয় পুলিশ ফাঁড়িতে তাদের ডেকে নেয়া হয়। পরে সকালে টেকনাফ থানায় নিয়ে সাদা কাগজে স্বাক্ষর নেয়া হয়েছিল বলে দাবি করেন তারা। পরে জানতে পারেন তাদের সাক্ষী করা হয়েছে। এদিকে সিনহার বোনের করা হত্যা মামলায় অভিযুক্ত ৯ আসামির মধ্যে ওসি প্রদীপ, ইন্সপেক্টর লিয়াকতসহ সাতজন কারান্তরীণ। তাদের মধ্যে প্রধান তিন আসামির সাত দিনের রিমান্ড এবং বাকি চারজনকে দু’দিন করে কারা ফটকে জিজ্ঞাসাবাদের অনুমতি দেন আদালত। গত শনি ও রোববার তাদের জিজ্ঞাসাবাদ করা হয়। জিজ্ঞাসাবাদে তাদের কাছ থেকে হত্যাকা- এবং তার সাথে রিলেটেড নানা গুরুত্বপূর্ণ তথ্য পাওয়া গেছে বলে জানিয়েছিলেন র‌্যাবের গণমাধ্যম শাখার প্রধান লে. কর্নেল আশিক বিল্লাহ। আরও তথ্য জানতে ওই চার আসামিকে নতুন করে ১০ দিনের রিমান্ড চেয়ে সোমবার আদালতে আবেদন করা হয়। গতকাল বুধবার তাদের ৭ দিনের রিমান্ড মঞ্জুর করেন আদালত। প্রসঙ্গত, ৫ আগস্ট নিহত সিনহার বোন শারমিন শাহরিয়া বাদী হয়ে কক্সবাজার সিনিয়র জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালতে ইন্সপেক্টর লিয়াকত, ওসি প্রদীপ কুমার দাশসহ ৯ জনের বিরুদ্ধে হত্যা মামলা করেন। ৬ আগস্ট বরখাস্ত ওসি প্রদীপ ও লিয়াকতসহ সাত আসামি কক্সবাজার সিনিয়র জুডিশিয়াল আদালতে আত্মসমর্পণ করেন। মামলার শুনানিতে র‌্যাবের পক্ষে প্রত্যেক আসামির ১০ দিন করে রিমান্ডের আবেদন করা হয়। আদালত ইন্সপেক্টর লিয়াকত, ওসি প্রদীপ এবং এসআই নন্দ দুলাল রক্ষিতের সাত দিন করে রিমান্ড মঞ্জুর করেন। বাকি চারজনকে দুদিন কারাফটকে জিজ্ঞাসাবাদের আদেশ দেন।বাকি দুই আসামির বিরুদ্ধে গ্রেফতারি পরোয়ানা জারি করেন আদালত।

সরকারের সদিচ্ছার সব ব্যাপারে সংশয় রাখা ঠিক নয় – কাদের

ঢাকা অফিস ॥ সরকারের সদিচ্ছার সব ব্যাপারে সংশয় রাখা ঠিক নয় বলে মন্তব্য করে আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ও সড়ক পরিবহন মন্ত্রী ওবায়দুল কাদের বলেছেন, কাউকে কোনো ব্যাপারে সন্দেহ হলে তাকে নিয়ে জিজ্ঞাসাবাদ করা হয়। ছেড়ে দিলে বলা হয় জনগণের চাপে। এখানে সরকারের সদিচ্ছাকে সব ব্যাপারে সংশয়ে রাখবেন-এই কথা সঠিক নয়। গতকাল বুধবার সিলেট জোনের বাংলাদেশ সড়ক পরিবহন কর্তৃপক্ষ (বিআরটিএ) ও রাষ্ট্রায়ত্ত পরিবহন সংস্থা বাংলাদেশ সড়ক পরিবহন করপোরেশনের (বিআরটিসি) কর্মকর্তাদের সঙ্গে মতবিনিময় সভায় এসব কথা বলেন সড়ক পরিবহন মন্ত্রী। জাতীয় সংসদ ভবন এলাকায় অবস্থিত সরকারি বাসভবন থেকে ভাচুর্য়ালি এই সভায় যোগ দেন তিনি। ওবায়দুল কাদের বলেন, অ্যামনেস্টি ইন্টারন্যাশনাল থেকে বলা হয়েছে, সভা-সমাবেশে বাধা দেয়া হয়েছে। কিন্তু সভা-সমাবেশের কোনো কর্মসূচি তো এই করোনা ও বন্যাকালে হওয়ার কথা নয়। এখানে সভা-সমাবেশে বাধা দেয়ার কোনো তথ্য-প্রমাণ থাকলে আপনারা বলতে পারেন। এভাবে ঢালাও মন্তব্য করা সমীচীন নয়। সড়ক পরিবহন মন্ত্রী বলেন, কিছু কিছু গণপরিবহন করোনাকালের জন্য গৃহীত ব্যবস্থা হিসেবে সমন্বিত ভাড়া মেনে চলছে না এবং স্বাস্থ্যবিধির তোয়াক্কা না করে গাড়ি চালানোর অভিযোগ পাওয়া যাচ্ছে। আবার কেউ কেউ অর্ধেক আসন খালি রাখার প্রতিশ্রুতি ভঙ্গ করে শতভাগ আসনে যাত্রী পরিবহন করছেন। ঈদের সময়ও এটা দেখা গেছে। ঈদের আগে এই প্রবণতাটা ছিল না। কিন্তু ঈদের সময় থেকে এটা দৃশ্যমান, যা অত্যন্ত দুঃখজনক। পরিবহন মালিক ও শ্রমিক সংগঠনের নেতাদের এ বিষয়ে দৃষ্টি আকর্ষণ করছি। প্রতিশ্রুতি ও সরকারের নির্দেশনা প্রতিপালনের আহ্বান জানাচ্ছি। তিনি বলেন, জনগণের ভোগান্তি যে সব পরিবহন তৈরি করছে, শৃঙ্খলা নষ্ট করছে, সিদ্ধান্ত মানছে না, তাদের বিরুদ্ধে মালিক সংগঠনগুলোকে ব্যবস্থা গ্রহণের পাশাপাশি আইন প্রয়োগকারী সংস্থা ও বিআরটিএকে আইনগত ব্যবস্থা নিতে অনুরোধ করছি। বিশ্বের বিভিন্ন দেশে করোনা সংক্রমণের দ্বিতীয় ধাপ শুরু হয়েছে জানিয়ে সরকারের এই মন্ত্রী বলেন, এ প্রেক্ষাপটে আমাদের সতর্কতা ও সচেতনতা আরও বাড়ানো জরুরি। ঢাকায় লক্ষণ ছাড়াও সংক্রমণ ঘটছে বলে বিশেষজ্ঞরা (বলছেন) ও গণমাধ্যমে সংবাদ প্রকাশ হয়েছে। নমুনা পরীক্ষার তুলনায় সংক্রমণের হার কমছে-এ কথাও বলা যাবে না। একদিকে আমাদের মাস্ক পরিধান করা অতি অবশ্যক ও জরুরি। স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলতে হবে। অপরদিকে প্রতিরোধ ব্যবস্থা জোরদারে সর্বোচ্চ ব্যবস্থা রাখতে হবে। ভারতের সাবেক রাষ্ট্রপতি প্রণব মুখার্জির অসুস্থতায় মর্মাহত জানিয়ে আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক বলেন, ভারতের সাবেক রাষ্ট্রপতি প্রণব মুখার্জি করোনা সংক্রমণে এখন চিকিৎসাধীন। তার অবস্থা সংকটাপন্ন। আমরা তার রোগমুক্তি কামনা করছি। প্রণব মুখার্জির মতো শুভাকাক্সক্ষীর অসুস্থতায় আমরা মর্মাহত। করোনাভাইরাস সম্পর্কিত স্বাস্থ্য বিভাগের নিয়মিত স্বাস্থ্য বুলেটিন একেবারে বন্ধ না করে সপ্তাহে দুই দিন প্রচারের আহ্বান জানান ওবায়দুল কাদের। তিনি বলেন, করোনা সংক্রমণ, মৃত্যুসহ প্রতিদিন স্বাস্থ্য বিভাগের আপডেট বন্ধ হলে এ ভাইরাসের সংক্রমণ রোধে জনমানুষের মাঝে স্বাস্থ্যবিধি মানতে অনীহা দেখা দিতে পারে। পাশাপাশি গুজবের ডালপালা বিস্তারের আশংকাও থেকে যাবে। এ সময় বিষয়টি বাস্তবতার নিরিখে বিবেচনায় নেয়ার জন্য সংশ্লিষ্টদের প্রতি অনুরোধ করেন তিনি। ওবায়দুল কাদের বলেন, করোনার এ সময়ে সরকার জনসমাবেশ বা কোনো ধরনের সমাগম সংক্রমণ রোধের স্বার্থে বন্ধ ঘোষণা করেছে। কোনো ধরনের অনিয়ম কিংবা হত্যাকা-ের বিষয়ে সরকার দ্রুততার সাথে ব্যবস্থা গ্রহণ করেছে। এ নিয়ে মানববন্ধন ও রাজনৈতিক কর্মসূচি করোনার সংক্রমণকে উৎসাহিত করতে পারে। আইনশৃঙ্খলা বাহিনী যেকোনো মামলার সন্দেহভাজনদের জিজ্ঞাসাবাদ করতে পারে এবং এ সময়ে সবাইকে ধৈর্য ও সহনশীলতা প্রদর্শনের আহ্বান জানান ওবায়দুল কাদের।

ওসি প্রদীপসহ ২৯ জনের বিরুদ্ধে হত্যা মামলা

ঢাকা অফিস ॥ কক্সবাজারের মহেশখালীর বহুল আলোচিত আবদুস সাত্তার হত্যার ঘটনায় ওই থানার সাবেক ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) প্রদীপ কুমার দাশসহ ২৯ জনের বিরুদ্ধে আদালতে হত্যা মামলা করা হয়েছে। গতকাল বুধবার দুপুরে মহেশখালীর সিনিয়র জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালতে মামলাটি করেন ভিকটিম আবদুস সাত্তারের স্ত্রী হামিদা আক্তার (৪০)। মামলায় সাবেক ওসি প্রদীপ ছাড়াও পুলিশের পাঁচ সদস্যকে আসামি করা হয়েছে। তারা হলেন- এসআই হারুনুর রশীদ, এসআই ইমাম হোসেন, এএসআই মনিরুল ইসলাম, এএসআই শাহেদুল ইসলাম ও এএসআই আজিম উদ্দিন। ২৯ আসামির মধ্যে প্রধান আসামি হিসেবে রয়েছেন ফেরদৌস বাহিনীর প্রধান ফেরদৌস (৫৬)। তিনি একই এলাকার মৃত নুরুল কবিরের ছেলে। ভিকটিম আবদুস সাত্তার হোয়ানক পূর্ব মাঝেরপাড়ার মৃত মৃত নুরুচ্ছফার ছেলে। মামলার বাদী হামিদা আক্তার জানান, ২০১৭ সালের ১৪ ফেব্রুয়ারি সকাল ৭টার দিকে ফেরদৌস বাহিনীর সহায়তায় হোয়ানকের লম্বাশিয়া এলাকায় তার স্বামী আবদুস সাত্তারকে হত্যা করা হয়। এ ঘটনায় মামলা করতে গেলে পুলিশ মামলা নেয়নি। পরে উচ্চ আদালতের শরণাপন্ন হন তিনি। রিট পিটিশন নং-৭৭৯৩/১৭ মূলে ‘ট্রিট ফর এফআইআর’ হিসেবে গণ্য করতে আদেশ দেন বিচারক। আদালত সূত্র জানায়, হামিদা বেগমের করা রিটের শুনানি নিয়ে হাইকোর্ট ২০১৭ সালের ৭ জুন আদেশ দেন। এতে বলা হয়, হামিদা বেগম এজাহার দাখিল করলে মহেশখালী থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তাকে তা তাৎক্ষণিক গ্রহণ করতে হবে। এ আদেশ প্রত্যাহার চেয়ে পুলিশ মহাপরিদর্শকের (আইজিপি) পক্ষে হাইকোর্টে আবেদন করা হয়। অন্যদিকে হাইকোর্টের আদেশের বিরুদ্ধে স্বরাষ্ট্র সচিবের (জননিরাপত্তা বিভাগ) পক্ষে আপিল বিভাগে আবেদন করা হয়। এই আবেদনের শুনানি নিয়ে ২০১৮ সালের ১৩ মে আপিল বিভাগ আদেশ দেন। এতে রুল ইস্যু না করে এজাহার গ্রহণ করতে হাইকোর্টের দেয়া আদেশ বাতিল করা হয়। একই সঙ্গে ওই রিটটি মামলা হিসেবে নতুন করে শুনানি করতে বলা হয়। এদিকে ওই সময় হাইকোর্টে রিট পিটিশনকারী অ্যাডভোকেট রাশেদুল হক খোকন জানান, উচ্চ আদালত থানায় মামলাটি করার নির্দেশ দেন। কিন্তু পরে আইজিপির পক্ষ থেকে আদেশ স্থগিতের আবেদনের প্রেক্ষিতে তা স্থগিত করেন উচ্চ আদালত।

এমপি হানিফের শোক

করোনায় কুষ্টিয়া জেলা ছাত্রলীগের সাবেক সহ-সভাপতি আলতাফের বাবার মৃত্যু

নিজ সংবাদ ॥ কুষ্টিয়া জেলা ছাত্রলীগের সাবেক সহ-সভাপতি আলতাফ হোসেনের বাবা আলী হোসেন মারা গেছেন। তিনি করোনায় আক্রান্ত হয়ে রাজধানী ঢাকার কুর্মিটোলা হসপিটালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় গতকাল বুধবার  সন্ধ্যায় মারা যান। মৃত্যুকালে তার বয়স হয়েছিল ৬৭ বছর। সাবেক ছাত্রনেতা আলতাফের বাবার মৃত্যুতে গভীর শোক ও শোক সন্তপ্ত পরিবারের সদস্যদের প্রতি সমবেদনা জানিয়েছেন বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের যুগ্মসাধারণ সম্পাদক ও কুষ্টিয়া সদর আসনের সংসদ সদস্য মাহবুবউল আলম হানিফ।  তিনি এক শোক বার্তায় জানিয়েছেন আলী হোসেন একজন সজ্জন মানুষ ছিলেন। তার অকালে চলে যাওয়াটা পরিবারের সদস্যদের যেমন কষ্টের  তেমনি আমরা হারালাম একজন সজ্জন ব্যক্তিকে। এজন্য তিনি মরহুমের আত্মার মাগফেরাত কামনা সহ পরিবারের সদস্যদের প্রতি গভীর সমবেদনা জ্ঞাপন করেছেন। এদিকে কুষ্টিয়া জেলা ছাত্রলীগের সাবেক সহ-সভাপতি আলতাফ হোসেনের বাবার মৃত্যুতে গভীর শোক ও শোকসন্তপ্ত পরিবারের সদস্যদের প্রতি সমবেদনা জানিয়েছেন কুষ্টিয়া জেলা ছাত্রলীগের সাবেক সভাপতি ও আলতাফের ঘনিষ্ঠ বন্ধু মাজহারুল আলম সুমন। এক শোক বার্তায় তিনি মরহুমের আত্মার মাগফেরাত কামনা ও শোক সন্তপ্ত পরিবারের সদস্যদের প্রতি গভীর সমবেদনা জানান।

ছাতারপাড়ায় সন্ত্রাসী হামলায় আহত কৃষকের মৃত্যু

আমলা অফিস ॥ কুষ্টিয়ার দৌলতপুরে জানারুল ইসলাম (৩২) নামের এক কৃষককের পিটিয়ে হত্যার অভিযোগ পাওয়া গেছে। গতকাল বুধবার ভোর সাড়ে ৪টার সময় কুষ্টিয়া জেনারেল হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় তিনি মারা যান। নিহত কৃষক জানারুল ইসলাম দৌলতপুর উপজেলার আড়িয়া ইউনিয়নের ছাতারপাড়া এলাকার জসিম উদ্দিন পিয়াদার ছেলে। ঘটনার প্রত্যক্ষদর্শী আসলাম হোসেন জানান, গত ২৪ জুন ছাতারপাড়া এলাকার বটতলা চায়ের দোকানে বসে ছিলো জানারুল ইসলাম। এসময় স্থানীয় নওয়াব, আসমত, হামেদ, নজরুল, সাইফুল, আজগরসহ বেশ কয়েকজন এসে রড, কাঠের বাটাম দিয়ে জানারুলকে পিটিয়ে আহত করে। তারপর প্রাণভয়ে জানারুল দৌড়ে পালিয়ে যেতে চাই। কিন্তু তাকে আবারো ধরে মারধর করে। নিহতের বড় ভাই জিয়ারুল ইসলাম দাবী করেন, আমার ভাই জানারুলকে পরিকল্পিতভাবে মারধর করে ওরা মেরে ফেলেছে। আমরা তাকে হাসপাতালে নিয়ে যায় সেখানে চিকিৎসাধীন থাকা অবস্থায় সে মারা গেছে। আমি এর সঠিক বিচার চাই। নিহতের পিতা জসিম উদ্দিন পিয়াদা জানান, আমার ছেলের নামে মিথ্যা মামলা দিয়েছে নওয়াব গং রা। মামলার ভয়ে সে বাড়ীতে থাকতে পারতো না। তাকে দিনে দুপুরে একা পেয়ে পিটিয়ে হত্যা করেছে। আমি আমার ছেলে হত্যার বিচার চাই। দৌলতপুর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আরিফুর রহমান জানান, এ ধরনের কোন ঘটনা আমার জানা নেই। এ ব্যাপারে থানায় কোন অভিযোগ আসেনি। এদিকে সকালে দৌলতপুর থানা পুলিশ নিহত জানারুল ইসলামের বাড়ীতে গেলেও মৃত্যুর খবর জানেন না বলে জানান দৌলতপুর থানার ওসি। উলে¬খ্যঃ মাত্র ১ বিঘা জমি নিয়ে দীর্ঘদিন ধরে ঐ এলাকার দুই (গাইন ও পিয়াদা) গ্র“পের মধ্যে দ্বন্দ্বের কারণে একাধিকবার হামলার ঘটনা ঘটেই চলেছে। গত ১১ জুন দুপুরে দু’পক্ষের হামলা-পাল্টা হামলায় আহত হন ইউনিয়ন স্বেচ্ছাসেবক লীগের সাধারণ সম্পাদক গাইন গ্র“পের নওয়ার আলী ও  পিয়াদা গ্র“পের কৃষক তায়েজ আলী। এ ঘটনায় নওয়াব আলী বাদী হয়ে প্রতিপক্ষের ১৫ জনের নামোলে¬সহ মামলা করেন দৌলতপুর থানায়। এরপর গত ২১ জুন পুলিশ মামলাটির তদন্তে গিয়ে এজাহারভুক্ত আসামিদের বাড়ি তল¬াশি করে দেশীয় অস্ত্র উদ্ধার করে তার জব্দ তালিকা প্রস্তুতসহ অবৈধ অস্ত্র আইনে একই মামলার এজাহারভুক্ত আসামিদের বিরুদ্ধে মামলা করেন পুলিশ। এর পর থেকে ঐ এলাকায় প্রতিনিয়ত হামলা, লুট, প্রতিপক্ষের বাড়ী ভাংচুরের ঘটনা ঘটেই চলেছে।

যেকোনো দুর্যোগে বাংলাদেশের পাশে থাকবে ভারত – রিভা গাঙ্গুলি

ঢাকা অফিস ॥ ভারতের বিদায়ী হাইকমিশনার রিভা গাঙ্গুলি দাশ বলেছেন, যেকোনো দুর্যোগে ভারত সবসময় বাংলাদেশের পাশে থাকবে। তিনি গতকাল বুধবার খাদ্যমন্ত্রী সাধন চন্দ্র মজুমদারের সঙ্গে সাক্ষাৎকালে এই আশ্বাস দেন। গতকাল বুধবার দুপুর ৩টায় খাদ্য মন্ত্রণালয়ের অফিস কক্ষে এ সাক্ষাৎ অনুষ্ঠিত হয়। এ সময় খাদ্য মন্ত্রণালয়ের সচিব মোছাম্মৎ নাজমানারা খানুম উপস্থিত ছিলেন। বৈঠকে তারা পরস্পর শুভ জন্মাষ্টমীর শুভেচ্ছা বিনিময় করেন। রিভা গাঙ্গুলি দাশ শোকের মাসে জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানসহ ১৫ আগস্ট শাহাদাৎ বরণকারী সকলের আত্মার প্রতি শ্রদ্ধা নিবেদন করে দ্বিপাক্ষিক স্বার্থ-সংশ্লিষ্ট বিভিন্ন বিষয় নিয়ে আলোচনা শুরু করেন। চলমান মহামারী কোভিড-১৯ ও বন্যা পরিস্থিতি নিয়েও তাদের মধ্যে আলোচনা হয়। উভয় দেশেই পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে রয়েছে বলে অভিমত ব্যক্ত করা হয়। রিভা গাঙ্গুলি দাশ যেকোনো দুর্যোগে ভারত সবসময় বাংলাদেশের পাশে থাকবে বলে আশ্বস্ত করেন। এ সময় খাদ্যমন্ত্রী সাধন চন্দ্র মজুমদার বাংলাদেশে দায়িত্ব পালনকালে আন্তরিক সহযোগিতার জন্য বিদায়ী হাইকমিশনার রিভা গাঙ্গুলি দাশকে আন্তরিক ধন্যবাদ জানান এবং তার পরবর্তী কর্মজীবনের সফলতা কামনা করেন।

ইবিতে দিনব্যাপী ওয়েবনার অন ইফেকটিভ ট্রিচিং স্ট্রাটিজিক ফর ইউনিভার্সিটি টিচার শীর্ষক ভার্চুয়াল সেমিনার অনুষ্ঠিত

ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয়ের ভাইস-চ্যান্সেলর এর বাংলোর কনফারেন্স রুমে বিশ^বিদ্যালয়ের ( কোয়ালিটি এ্যাসুয়েরেন্স সেল) আইকিউএসি’র আয়োজনে বুধবার দিনব্যাপী “ওয়েবনার অন ইফেকটিভ ট্রিচিং স্ট্রাটিজিক ফর ইউনিভার্সিটি টিচার” শীর্ষক ভার্চুয়াল সেমিনার অনুষ্ঠিত হয়। ভার্চুয়াল সেমিনারে ঘন্টাব্যাপী প্রধান অতিথির বক্তব্য রাখেন ভাইস-চ্যান্সেলর প্রফেসর ড. মোঃ হারুন-উর-রশিদ আসকারী (ড. রাশিদ আসকারী)।  বিশেষ অতিথির বক্তব্য রাখেন প্রো-ভাইস-চ্যান্সেলর প্রফেসর ড. মোঃ শাহিনুর রহমান ও ট্রেজারার প্রফেসর ড. মোঃ সেলিম তোহা। ভার্চুয়াল সেমিনারে রির্সোস পারসনের বক্তব্য রাখেন ভারতের দিল্লির বিখ্যাত জহুরুলাল বিশ^বিদ্যালয়ের সেন্টার ফর ইস্ট্রোরিক্যাল স্টাডিজ স্কুল অব সোস্যাল সায়েন্স এর প্রফেসর ড. জ্যোতি আতোয়াল। দিনব্যাপী ভার্চুয়াল সেমিনার বিশ^বিদ্যালয়ের নব্বই এর অধিক শিক্ষকবৃন্দ অংশগ্রহন করেন। এছাড়া ভার্চুয়াল সেমিনার উপস্থিত ছিলেন প্রক্টর প্রফেসর ড. পরেশ চন্দ্র বম্মর্ণ, প্রফেসর ড. মাহবুবর রহমান, রেজিস্ট্রার(ভারঃ) এস.এম আব্দুল লতিফসহ বিশ^বিদ্যালয়ের আইসিটি সেলের কর্মকর্তাবৃন্দ। সংবাদ বিজ্ঞপ্তি

কুষ্টিয়ায় নতুন করে ১২ জন করোনা রোগী সনাক্ত

নিজ সংবাদ ॥ কুষ্টিয়ায় ১২ জন নতুন করোনা রোগী সনাক্ত হয়েছে। এখন পর্যন্ত কুষ্টিয়ায় করোনা পজিটিভ রোগীর সংখ্যা ২১৯৪ জন। এর মধ্যে সুস্থ হয়েছেন ১৫০২ জন এবং মৃত্যু হয়েছে ৪৪ জনের। গতকাল বুধবার রাতে জেলা প্রশাসকের পক্ষ থেকে এ তথ্য নিশ্চিত করা হয়েছে। কুষ্টিয়ার  মেডিকেল কলেজের বরাতদিয়ে জেলা প্রশাসকের পক্ষ থেকে জানানো হয়, পিসিআর ল্যাবে ১২ আগস্ট  কুষ্টিয়ার ৯১টি নমুনা ছিলো। তাতে দৌলতপুর উপজেলার ৭ জন, মিরপুর উপজেলার ২ জন, কুষ্টিয়া সদর উপজেলার ১ জন,  কুমারখালী উপজেলার ১  জন ও খোকসা উপজেলার ১ জনসহ ১২ জন নতুন করোনা রোগী সনাক্ত হয়েছে। কুষ্টিয়া সদর উপজেলায় আক্রান্ত ১ জনের   ঠিকানা ঃ ডিসি কোর্ট ১ জন। দৌলতপুর  উপজেলায় আক্রান্ত ৭ জনের ঠিকানাঃ   সোনাইকান্দি ১ জন, কল্যাণপুর ১ জন, কামালপুর ১ জন, কাটামারি ২ জন,  এলজিইডি অফিস  ১ জন ও চকমাদিয়া ১ জন। কুমারখালী উপজেলায় আক্রান্ত ১ জনের ঠিকানাঃ  তেবাড়িয়া কুমারখালী ১ জন। খোকসা উপজেলায় আক্রান্ত ১ জনের   ঠিকানাঃ হাশিমপুর ১ জন। মিরপুর উপজেলায় আক্রান্ত ২ জনের   ঠিকানাঃ মিরপুর থানা ১ জন ও আটিগ্রাম ১ জন। জেলা প্রশাসকের পক্ষ থেকে আরো জানানো হয়, ঘরের বাহিরে যাওয়ার প্রয়োজন হলে অবশ্যই মাস্ক ব্যবহার করুন। অতি-প্রয়োজনীয় না হলে বাহিরে যাওয়া থেকে বিরত থাকুন। সামাজিক দুরত্ব মেনে চলুন। অনুগ্রহ করে সতর্ক থাকুন, সাবধানে থাকুন, ভাল থাকুন।