করোনা মহামারীর মধ্যেই তীব্র হচ্ছে দীর্ঘস্থায়ী বন্যার আশঙ্কা

ঢাকা অফিস ॥ করোনা প্রাদুর্ভাবের মধ্যেই এবার বন্যাও দীর্ঘস্থায়ী হওয়ার আশঙ্কা রয়েছে। জুলাইয়ের প্রথম থেকে এদেশে বন্যা প্রকোপ শুরু হয়। প্রতি বছর বন্যায় উত্তরের জেলাগুলোই বেশি আক্রান্ত হয়। সাধারণত ওসব এলাকায় মধ্য মেয়াদে বন্যার প্রবণতাই বেশি দেখা দেয়। তারপর থেকে মধ্যাঞ্চল হয়ে নিম্নাঞ্চল দিয়ে বন্যার পানি সাগরে গিয়ে পড়ে। বন্যা পরিস্থিতি উন্নতি হতে থাকে। কিন্তু এবার স্বাভাবিক সময়ের দু’সপ্তাহ আগেই বন্যার প্রকোপ শুরু হয়েছে। এখন পর্যন্ত কোথাও বন্যার কাক্সিক্ষত উন্নতি হয়নি। এই অবস্থায় ভারি বৃষ্টিপাত অব্যাহত থাকলে বন্যা পরিস্থিতির আরো অবনতি হবে।  রূপ নিতে পারে দীর্ঘমেয়াদী বন্যায়। পানি উন্নয়ন বোর্ড ও আবহাওয়া অধিদফতর সংশ্লিষ্ট সূত্রে এসব তথ্য পাওয়া যায়। সংশ্লিষ্ট সূত্র মতে, দেশের উত্তর-পূর্বাঞ্চলের প্রধান প্রধান নদ-নদী ছাড়া দেশের প্রায় সব প্রধান নদ-নদীর পানি এখনো বিপদসীমার ওপর দিয়ে প্রবাহিত হচ্ছে। দেশের উত্তর ও মধ্যাঞ্চলের ১১ জেলা যমুনা, ব্রহ্মপুত্র, পদ্মার পানিতে প্লাবিত। উত্তর-পূর্বাঞ্চলেও বন্যার পানি সরেনি। এ অবস্থায় অতি ভারি বর্ষণে ওসব এলাকায় পুনরায় বন্যা পরিস্থিতি অবনতির আশঙ্কা রয়েছে। বর্তমানে দেশের উত্তর পূর্বাঞ্চলে আপার মেঘনা অববাহিকায় বন্যা পরিস্থিতির কিছুটা উন্নতি হলেও উত্তরাঞ্চলে অন্যত্র বন্যা এখনো স্থিতিশীল রয়েছে। তবে মধ্যাঞ্চলে পানি বেড়ে বন্যার অবনতি হওয়ার আশঙ্কা রয়েছে। কয়েক দিন ধরেই যমুনা নদীর পানি স্থিতিশীল রয়েছে। ফলে উত্তরের বন্যারও কাক্সিক্ষত উন্নতি হচ্ছে না। কিন্তু পদ্মা এবং অন্য প্রধান নদীগুলোর পানি এখনো বাড়ছেই। ফলে ওসব নদীর অববাহিকায় নতুন করে বন্যার আশঙ্কা বাড়ছে। এ অবস্থায় উজান থেকে আসা পানির পরিমাণ বেড়ে গেলে এবং দেশের ভেতরে আবারো ভারি বৃষ্টিপাত শুরু হলে বন্যা পরিস্থিতি আরো খারাপ হবে। এমনকি বর্তমান পরিস্থিতির উন্নতি হওয়ার আগেই আরেক দফায় বন্যার কবলে পড়তে পারে।

সূত্র জানায়, হিমালয়ের বরফ গলা পানি থেকে শুরু করে উজানে নেমে আসার পানির শতকরা ৯০ ভাগই দেশের ভেতরের প্রবাহিত নদীর মাধ্যমে সাগরে গিয়ে পড়ে। কিন্তু এই পানি চাপ যখন বেশি পরিমাণ বেড়ে যায় তখন নদী তীরবর্তী এলাকায় উপচিয়ে বন্যাকবলিত হয়ে পড়ে। এবার মৌসুম শুরু হওয়ার আগেই উজানের পানির কারণে নদ-নদীগুলোতে অস্বাভাবিক পানির চাপ বেড়ে যায়। বিশেষ করে উত্তরের প্রধান নদী যমুনার পানি মধ্য জুন নাগাদই বিপদ সীমার কাছাকাছি পৌঁছে যায়। জুনের শেষ সপ্তাহ থেকেই উত্তরের জেলায় বন্যা পরিস্থিতি অবনতি হতে থাকে। উত্তরের বন্যা পরিস্থিতি কিছুটা স্থিতিশীল হয়ে পড়লে বন্যার কাক্সিক্ষত কোন উন্নতি হয়নি। দেশের মধ্যাঞ্চলেও পানি বাড়ছে। আর আবহাওয়া পূর্বাভাস অনুযায়ী বর্তমানে দেশে বৃষ্টিপাতের পরিমাণ কমলেও আবারো ভারি বৃষ্টিপাতের আভাস রয়েছে। সূত্র আরো জানায়, বর্তমানে পদ্মা নদীর পানি বৃদ্ধির সঙ্গে সঙ্গে দৌলতদিয়া-পাটুরিয়া তীব্র ¯্রােত বাড়ছে। ওই এলাকায় নৌযান পারাপার ব্যাহত হচ্ছে। পারাপারে সময় লাগছে আগের তুলনায় দ্বিগুণ। নদীতে ¯্রােত বেড়ে যাওয়ায় ওই রুটে ছোট ছোট লঞ্চ চলাচল বন্ধ করেছে কর্তৃপক্ষ। এদিকে আবহাওয়া অফিস জানিয়েছে, গত কয়েকদিন দেশে বৃষ্টিপাতের প্রবণতা কমলেও আবারো ভারি বৃষ্টিপাতের আশঙ্কা রয়েছে। বিশেষ করে আবারো সক্রিয় হয়ে পড়ছে মৌসুমি বায়ু। এ অবস্থায় রংপুর ময়মনসিংহ এবং সিলেট বিভাগে ভারি থেকে অতি ভারি বর্ষণ হতে পারে। ইতিমধ্যে উত্তরের জেলা এবং সিলেট বিভাগের ভারি বর্ষণ শুরু হয়েছে। মৌসুমি বায়ুর অক্ষ রাজস্থান, পাঞ্জাব, হরিয়ানা, উত্তর প্রদেশ, বিহার, হিমালয়ের পাদদেশীয়, পশ্চিমবঙ্গ ও বাংলাদেশের উত্তরাঞ্চল হয়ে অসম পর্যন্ত বিস্তৃত। এর একটি অংশ উত্তর-পূর্ব বঙ্গোপসাগর পর্যন্ত বিস্তৃত।

 

২০ দলের ভার্চুয়াল বৈঠক আজ

ঢাকা অফিস ॥ সদ্য পাস হওয়া ২০২০-২০২১ অর্থবছরের বাজেট এবং বৈশ্বিক দুর্যোগ করোনাভাইরাসে দেশের পরিস্থিতি পর্যালোচনা করতে বৈঠক ডেকেছে বিএনপি নেতৃত্বাধীন ২০দলীয় জোট। আজ রোববার বেলা ১১টায় জুম অ্যাপের মাধ্যমে ভার্চুয়ালি বৈঠকটি অনুষ্ঠিত হবে। ২০ দলের অন্যতম শরিক জাতীয় দলের চেয়ারম্যান অ্যাডভোকেট সৈয়দ এহসানুল হুদা এ তথ্য জানিয়েছেন। তিনি বলেন, রোববার আমাদের ভার্চুয়াল বৈঠক অনুষ্ঠিত হবে। জোটের সমন্বয়কারী বিএনপির জাতীয় স্থায়ী কমিটির সদস্য নজরুল ইসলাম খান এই বৈঠক আহ্বান করেছেন। বৈঠকে বাজেট ও করোনা পরিস্থিতি নিয়ে আলোচনা হবে। উল্লেখ্য, বৈশ্বিক মহামারি করোনাভাইরাসের প্রাদুর্ভাব শুরু হওয়ার পর থেকে মূলত রাজনৈতিক কর্মকা- বন্ধ রয়েছে। এ কারণে ২০ দলীয় জোটের নেতাদেরও কোনো বৈঠক গত চার মাসে হয়নি। এদিকে, গত ১১ জুন জাতীয় সংসদে পেশ হওয়া বাজেটের প্রতিক্রিয়া ২০ দলীয় জোট আনুষ্ঠানিকভাবে জানায় ১৫ দিন পর। গণমাধ্যমে পাঠানো ওই প্রতিক্রিয়ায় জোটের কয়েকটি দলের নেতাদের নাম না থাকা নিয়েও জোটের মধ্যে অস্থিরতা চলছে। এসব বিষয় নিয়ে আলোচনার পাশাপাশি করোনাভাইরাসে জোটগতভাবে করণীয় ও দেশের সর্বশেষ পরিস্থিতি নিয়ে বৈঠকে আলোচনা হবে।

করোনা পরিস্থিতিতে শিশুদের সুরক্ষার আহ্বান

ঢাকা অফিস ॥ প্রাণঘাতী মহামারি করোনা ভাইরাস (কোভিড-১৯) থেকে শিশুদের সুরক্ষার আহ্বান জানিয়েছেন ইউনিসেফ নির্বাহী বোর্ডের সভাপতি ও জাতিসংঘে নিযুক্ত বাংলাদেশের স্থায়ী প্রতিনিধি ও রাষ্ট্রদূত রাবাব ফাতিমা। তিনি বলেন, ন্যায়সঙ্গত, অন্তর্ভুক্তিমূলক ও পরিবেশবান্ধব সমাজ বিনির্মাণে সদস্য দেশের সরকারসমূহকে সহায়তা করতে অবশ্যই ইউনিসেফকে তার প্রচেষ্টা অব্যাহত রাখতে হবে। আর এই প্রচেষ্টাসমূহে উদ্ভাবন, দক্ষতা ও অর্থের মূল্যটাকে সর্বোচ্চ গুরুত্ব দিতে হবে। ইউনিসেফ নির্বাহী বোর্ডের চার দিনব্যাপী বার্ষিক অধিবেশনের শেষ দিনে বোর্ড সভাপতি হিসেবে সমাপনী বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন। গতকাল শনিবার জাতিসংঘের বাংলাদেশ স্থায়ী মিশন থেকে পাঠানো এক প্রেসবিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য জানানো হয়। বিশ্বব্যাপী ইউনিসেফের গুরুত্বপূর্ণ কাজগুলো এগোতে কৌশলগত দিক-নির্দেশনা ও সহযোগিতামূলক ছয়টি সিদ্ধান্ত সর্বসম্মতিক্রমে এই সমপানী অধিবেশনে গৃহীত হয়। এতে এসডিজি বাস্তবায়ন প্রচেষ্টায় সদস্যদেশগুলোকে সহায়তা করার গুরুত্ব উল্লেখ করেন রাষ্ট্রদূত ফাতিমা। এক্ষেত্রে তিনি বলেন, বিশ্বব্যাপী শিশুদের রক্ষার যে ম্যান্ডেট ইউনিসেফের রয়েছে তা বাস্তবায়নে প্রতিষ্ঠানটিকে অব্যাহতভাবে আর্থিক সহায়তা দিতে এটি অত্যন্ত প্রয়োজন। সঙ্কটপ্রবণ দেশগুলোতে নারী, কিশোর-কিশোরীদের লিঙ্গভিত্তিক সহিংসতারোধে সেবা ও সহায়তাদানের ক্ষেত্রে ইউনিসেফ গৃহীত প্রচেষ্টাসমূহের প্রশংসা করেন তিনি। এছাড়া মানবিক ও উন্নয়ন কর্মসূচিসমূহের সমন্বয় সাধনের জন্য ইউনিসেফের দীর্ঘমেয়াদি তহবিলের প্রয়োজনীয়তার কথাও তুলে ধরেন ওই বোর্ড সভাপতি। করোনার কারণে শিশু এবং তাদের পরিবারগুলো বহুমাত্রিক চ্যালেঞ্জ মোকাবিলা করছে বলে উল্লেখ করেন রাষ্ট্রদূত ফাতিমা। এক্ষেত্রে সামাজিক সুরক্ষা বেষ্টনী শক্তিশালী ও প্রসারিত করার লক্ষ্যে সরকারসমূহের প্রচেষ্টায় ইউনিসেফ যে সহযোগিতা করে যাচ্ছে তার প্রশংসা করেন তিনি। পরামর্শমূলক প্রক্রিয়া ও কার্যকর সমন্বয়ের মাধ্যমে জাতীয় সরকারগুলোর কাজে আরও পরিপূরক ভূমিকা রাখতে ও সহায়তায় এগিয়ে আসতে ইউনিসেফকে আহ্বান জানান বাংলাদেশের স্থায়ী প্রতিনিধি। রাবাব ফাতিমা বলেন, কোভিড-১৯ মহামারিকালে শিশুদের সাধারণ টিকাদান কর্মসূচি অব্যাহত রাখা, নিরাপদভাবে স্কুলসমূহ পুনরায় চালু করা, শিক্ষার্থীদের ডিজিটাল সুযোগ-সুবিধা ও সংযোগ নিশ্চিত করা, নিরাপদ পানি ও পয়ঃনিষ্কাশন নিশ্চিত করা, উন্নত মানসিক স্বাস্থ্যসেবা প্রদান এবং শিশুদের মনো-সামাজিক উন্নয়নের জন্য কর্মসূচি তৈরি করা হচ্ছে ইউনিসেফের এ সময়ের অগ্রাধিকার। সমাপনী অধিবেশনে অন্যান্যের মধ্যে বক্তব্য রাখেন ইউনিসেফ গ্লোবাল স্টাফ অ্যাসোসিয়েশনের চেয়ারম্যান নোমা ওয়েন্স-ইবি এবং ইউনিসেফের নির্বাহী পরিচালক হেনরিটা এইচ ফোর। ইভেন্টটিতে ইউনিসেফ স্টাফ টিম অ্যাওয়ার্ডস-২০১৯ বিজয়ী পাঁচটি দলের কর্মকা- তুলে ধরে একটি ভিডিও প্রদর্শিত হয়। ইউনিসেফের কর্মীবাহিনীকে সংগঠনটির মেরুদ- হিসেবে উল্লেখ করে হেনরিটা নোমা ফোর বলেন, বিশ্বব্যাপী কোভিড-১৯ সংকট মোকাবিলায় বিভিন্ন সম্প্রদায়, শিশু ও যুবদের সহযোগিতা দেওয়ার ক্ষেত্রে ইউনিসেফসহ জাতিসংঘের বিভিন্ন এজেন্সির মধ্যে কার্যকর আন্তঃসম্পর্কীয় সহযোগিতা ও সমন্বয়ের কোনো বিকল্প নেই।

করোনা পরীক্ষার ফি বাতিলের দাবি বিএনপির

ঢাকা অফিস ॥ অবিলম্বে করোনাভাইরাস পরীক্ষার ফি বাতিল করে নাগরিকদের বিনামূল্যে এ সেবা গ্রহণের ব্যবস্থা করে দেয়ার আহ্বান জানিয়েছে বিএনপি। দলটির সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী বলেছেন, করোনাভাইরাস পরীক্ষায় ফি নির্ধারণ গণবিরোধী সিদ্ধান্ত। যেখানে বিশ্বস্বাস্থ্য সংস্থা এবং সব বিশেষজ্ঞ করোনা সংক্রমণ রোধে টেস্ট বৃদ্ধি করাকেই প্রধান অবলম্বন বলছেন, সেখানে টেস্ট করাতে ফি ধার্য সিদ্ধান্ত কোনোভাবেই মেনে নেয়া যায় না। এতে নিম্ন আয়ের মানুষেরা উপসর্গ থাকার পরও করোনা পরীক্ষা করাতে পারবেন না। এমনিতে বেসরকারি হাসপাতালগুলো সরকার নির্ধারিত সাড়ে ৩ হাজার টাকায় কোভিড টেস্ট করছে না। যে যার মতো ৫-৬ হাজার টাকা পর্যন্ত জনগণের পকেট কেটে নিচ্ছে। সরকার তা নিয়ন্ত্রণের কোনো চেষ্টাই করছে না, স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের সমস্ত মনোযোগ দুর্নীতি আর লুটপাটে। গতকাল শনিবার নয়াপল্টনে বিএনপির কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে এক ভিডিও কনফারেন্সে তিনি এসব কথা বলেন। রিজভী বলেন, বর্তমান সরকারের প্রধানমন্ত্রী এবং তার দলের নেতা-মন্ত্রীরা প্রায়শই দাবি করে বলেন, বিশ্বে বাংলাদেশ নাকি রোল মডেল। কিসের জন্য বাংলাদেশ মডেল? স্বীকার করতেই হবে, বাংলাদেশ এখন দুর্নীতির জন্য সারা বিশ্বের কাছে মডেল। কারণ এরা যেমন ‘স্বর্ণের মেডেল’ থেকে স্বর্ণ চুরি করে আবার করোনায় বিপর্যস্ত মানুষের জন্য বরাদ্দ করা ত্রাণের চাল চুরি ও নকল মাস্কের ব্যবসা করতেও রোল মডেল হয়েছে। এখন মরণঘাতী করোনা মহামারি ভাইরাস পরীক্ষার ওপর ২০০ টাকা ফি আরোপ করার সিদ্ধান্ত বিস্ময়কর। এমনিতেই অর্থনৈতিক সংকট চরমে। মানুষের ঘরে খাবার নেই। হাসপাতালের দ্বারে দ্বারে ঘুরে অসহায়ভাবে পথে-ঘাটে মৃত্যুর কোলে ঢলে পড়ছে। প্রয়োজনের তুলনায় পরীক্ষাও হচ্ছে নামমাত্র। এরমধ্যে এই গণবিরোধী সিদ্ধান্ত নেয়া হলো। মহামারির চিকিৎসা কখনও ব্যক্তিগত উদ্যোগে হয় না। করোনা মহামারীর চিকিৎসার সম্পূর্ণ দায়িত্ব রাষ্ট্রের। বিশ্বের কোথাও সরকারিভাবে কোভিড টেস্টে অর্থ নেয়া হয় না। তিনি বলেন, বিশ্বে সবচেয়ে বেশি কোভিড টেস্টের রেকর্ড দক্ষিণ কোরিয়ার। তারা দিনে এক লাখের উপর মানুষের কোভিড টেস্টও করেছে। এমনকি অ্যান্টিবডি টেস্টও করেছে। তাদের সমস্ত টেস্টই বিনামূল্যে করা হচ্ছে। দক্ষিণ এশিয়ার সবচেয়ে গরিব দেশ আফগানিস্তানে কোভিড টেস্ট বিনামূল্যে করা হচ্ছে। এমনকি বিশ্বের সবচেয়ে গরিব দেশ পশ্চিম আফ্রিকার বুরকিনা ফাসোতেও কোভিড টেস্ট বিনামূল্যে করা হয়। আমাদের প্রতিবেশী কোনো দেশেই টেস্ট করাতে ফি নেয় না। উপরন্তু প্রায় প্রতিটা দেশের সরকার স্বেচ্ছাসেবীদের ঘরে ঘরে পাঠাচ্ছে নমুনা সংগ্রহে। টেস্ট করাতে জনগণকে উৎসাহিত করতে নানা পদক্ষেপ গ্রহণ করেছে। আর আমাদের দেশের শাসকগোষ্ঠী এই মহামারিকেও বানিয়েছে মুনাফা অর্জনের উপলক্ষ। এরা কতটা অমানবিক তার নিকৃষ্টতম প্রমাণ এই ফি ধার্য। বিএনপির এ নেতা বলেন, যেখানে বিশ্বস্বাস্থ্য সংস্থা এবং সব বিশেষজ্ঞ করোনা সংক্রমণ রোধে টেস্ট বৃদ্ধি করাকেই প্রধান অবলম্বন বলছেন, সেখানে টেস্ট করাতে ফি ধার্য সিদ্ধান্ত কোনোভাবেই মেনে নেয়া যায় না। এতে নিম্ন আয়ের মানুষেরা উপসর্গ থাকার পরও করোনা পরীক্ষা করাতে পারবেন না। তাদের চিহ্নিত করে কোয়ারেন্টাইন বা আইসোলেশন করা যাবে না। এতে সংক্রমণ দ্রুত বাড়তে থাকবে। লাশের মিছিল কেবল দীর্ঘতর হবে। দীর্ঘদিন ধরে ব্যবসা-বাণিজ্য, অফিস-আদালত বন্ধ, মানুষের আয়ের উৎস থেমে গেছে। এমনিতে বেসরকারি হাসপাতালগুলো সরকার নির্ধারিত সাড়ে ৩ হাজার টাকায় কোভিড টেস্ট করছে না। যে যার মতো ৫-৬ হাজার টাকা পর্যন্ত জনগণের পকেট কেটে নিচ্ছে। সরকার তা নিয়ন্ত্রণের কোনো চেষ্টাই করছে না, স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের সমস্ত মনোযোগ দুর্নীতি আর লুটপাটে। একটি হাসপাতালে ডাক্তার-নার্সদের খাবার-দাবারের বিল ২০ কোটি টাকা দেখালেও অভিযুক্ত স্বাস্থ্যমন্ত্রী বলছেন, কোনো দুর্নীতি হয়নি। অথচ প্রধানমন্ত্রী সংসদে দাঁড়িয়ে এই ২০ কোটি টাকার দুর্নীতি নিয়ে বিস্ময় প্রকাশ করলেও কোনো ব্যবস্থা নেয়ার কথা এখনও শোনা যায়নি। সরকার চারিদিক থেকেই শুধু স্বল্প আয়ের মানুষেরই পকেটে হাত দিচ্ছে। তিনি বলেন, এমনিতেই করোনার অভিঘাতে আর্থিকভাবে বিপর্যস্ত সাধারণ মানুষ, এর ওপর বিদ্যুৎ, জ¦ালানি, গ্যাস ও পানির মূল্য বৃদ্ধিতে তারা দিশেহারা, এর সঙ্গে করোনা টেস্টের ফি ২০০ টাকা ধার্য করে সরকার এখন ভ্যাম্পায়ারের ন্যায় রক্তচোষার ভূমিকায়। রিজভী বলেন, কোনো নাগরিক যদি টাকার অভাবে করোনাভাইরাস টেস্ট করতে না পেরে নিজ দেহে করোনাভাইরাস বহন করে বেড়ায় তাহলে একজন নাগরিক শুধু নিজেরই ক্ষতি করছেন না তিনি অন্যের জন্যও ক্ষতির কারণ হয়ে দাঁড়াবেন। এ কারণেই বিষয়টি নাগরিকদের দায়-দায়িত্বের ওপর ছেড়ে না দিয়ে বরং এটি রাষ্ট্রেরই দায়িত্ব, জনস্বার্থে রাষ্ট্র নিজ উদ্যোগে নাগরিকদের বিনামূল্যে করোনাভাইরাস টেস্ট করানোর সুযোগ সহজ করবে। তিনি আরও বলেন, সরকার নিজেরাও পরিস্থিতি সামাল দিতে পারছে না। বিরোধী দল কিংবা বিশেষজ্ঞদের মতামতকেও তোয়াক্কা করছে না। জনগণের দল বিএনপির পক্ষ থেকে আমরা করোনা পেন্ডেমিক ইস্যুতে সরকারকে বরাবরই সহযোগিতা করতে চেয়েছি। সঠিক পরামর্শ দেয়ার চেষ্টা করেছি। কিন্তু সরকার সেগুলো কানে নেয়নি। বিএনপির সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব বলেন, যেকোনো উপায়ে টাকা আয় করে দলীয় নেতাকর্মীদের লুটপাটের সুযোগ এবং বিদেশে পাচার করে দেয়াই যেন এই সরকারের নীতি হয়ে দাঁড়িয়েছে। গুম-খুন করে মানুষকে ভয় দেখিয়ে এই সরকার নিজেরাই নিজেদের মেয়াদ বাড়িয়ে সময় পার করছে বটে কিন্তু অদূর ভবিষ্যতে এই সরকারের অদক্ষতা, অজ্ঞতা, অব্যবস্থাপনার খেসারত নাগরিকদের হয়তো জীবনের বিনিময়ে দিতে হবে।

 

দুর্যোগ মোকাবেলায় খুলনা ও সাতক্ষীরা উপকূলীয় অঞ্চলের মানুষের পাশে রয়েছে সেনাবাহিনী

প্রাকৃতিক দুর্যোগ ও করোনা মোকাবেলায় শুরু থেকেই বাংলাদেশ  সেনাবাহিনী স্থানীয় প্রশাসনের পাশে থেকে সাধারণ মানুষের জন্য নিরলসভাবে কাজ করে যাচ্ছে। এরই ধারাবাহিকতায়  ঘূর্ণিঝড়  আম্পান পরবর্তী দুর্যোগ মোকাবেলায় ক্ষতিগ্রস্থ উপকূলীয় এলাকার বিভিন্ন পয়েন্টে বাঁধ নির্মাণ অব্যাহত রাখার পাশাপাশি ঘরবাড়ী  মেরামত, জরুরী চিকিৎসা সহায়তা প্রদান, সুপেয় পানি সরবরাহসহ নানাবিক জনসেবামূলক কার্যক্রম অব্যাহত রেখেছে যশোর সেনানিবাসের সেনাসদস্যরা। এছাড়াও করোনা  মোকাবেলায় প্রতিনিয়ত অসীম ধৈর্য্য ও শতভাগ পেশাদারিত্বের মাধ্যমে সামাজিক দূরত্ব বজায় রাখতে মানুষকে উৎসাহিত করতে দ্বারে দ্বারে ছুটছেন সেনাসদস্যরা। কখনও কখনও কাঁধে করে দুর্গম এলাকা পাড়ি দিয়ে খাদ্য সহায়তা পৌঁছে দিচ্ছেন অসহায় ও হত দরিদ্রদের বাড়ীতে। পাশাপাশি করোনা পরিস্থিতি মোকাবেলায়  প্রান্তিক অঞ্চলের মানুষের মাঝে ফ্রী চিকিৎসা সেবা ও ঔষধ বিতরণ, গর্ভবতী মায়েদের চিকিৎসা সেবা প্রদান, গণপরিবহন মনিটারিং, কৃষকদের মাঝে উন্নত জাতের বীজ বিতরণসহ সকল প্রকার জনসচেতনতামূলক  কার্যক্রম অব্যাহত রেখেছে যশোর  সেনানিবাসের সেনাসদস্যরা। সংবাদ বিজ্ঞপ্তি

 

 

বিএনপি নেতা ও সাবেক প্রতিমন্ত্রী গিয়াসউদ্দিনের মৃত্যু

ঢাকা অফিস ॥ সাবেক ত্রাণ ও পুর্নবাসন প্রতিমন্ত্রী এবং শরীয়তপুর জেলা বিএনপির সাবেক সভাপতি টিএম গিয়াসউদ্দিন (৮৩) ইন্তেকাল করেছেন। গত শুক্রবার রাত ১০টা ৪০ মিনিটে ঢাকার গ্রিন লাইফ হাসপাতালে তার মৃত্যু হয়। তিনি জ¦র ও ডায়াবেটিসে ভুগছিলেন। গতকাল শনিবার বেলা সাড়ে ১১টায় বিএনপির চেয়ারপারসনের মিড়িয়া উইংয়ের সদস্য শায়রুল কবির খান এ তথ্য জানান। দুই মেয়ে, এক ছেলে ও নাতি-নাতনিসহ অসংখ্য আত্মীয়স্বজন রেখে গিয়েছেন তিনি। মিড়িয়া উইংয়ের অপর সদস্য শামসুদ্দিন দিদার বলেন, টিএম গিয়াসউদ্দিনের মৃত্যুতে শোক জানিয়েছেন বিএনপির মহসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর ও শরিয়তপুর জেলা বিএনপির সভাপতি শফিকুর রহমান কিরণ। গতকাল শনিবার বাদ জোহর মোহাম্মদপুর তাজমহল জামে মসজিদে জানাজা শেষে তাজমহল রোড করবস্থানে তাকে দাফনের কথা জানান দিদার।

করোনা উপেক্ষা করেই রাশমোরেতে ট্রাম্প

ঢাকা অফিস ॥ করোনা মহামারির প্রকোপ সামলাতে হিমশিম খাচ্ছে যুক্তরাষ্ট্র। এ অবস্থায় মাউন্ট রাশমোরোতে স্বাধীনতা দিবস উদযাপন উপলক্ষে এক অনুষ্ঠানে অংশ নিয়েছেন দেশটির প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প। তিনি বর্ণবাদের বিরুদ্ধে বিক্ষোভরত প্রতিবাদকারীদের জাতিগত ন্যয়বিচারের দাবিকে ‘সহিংস মারামারি’ হিসেবে উলে¬খ করেছেন। যুক্তরাষ্ট্রে ৪ঠা জুলাই স্বাধীনতা দিবসের প্রাক্কালে শুক্রবার হাজার হাজার লোকের উপস্থিতিতে বক্তব্য দিতে গিয়ে ট্রাম্প এ কথা বলেন। অনুষ্ঠানে অংশ নেয়া অনেকেই ‘আরো চার বছর’ বলে শে¬াগান দিচ্ছিল। এদের অনেককেই মাস্ক পরতে দেখা যায়নি। সাউথ ডাকোটার ব¬্যাক হিলের গায়ে যুক্তরাষ্ট্রের চার উলে¬খযোগ্য প্রেসিডেন্টের মূর্তি খোদাই করা আছে। এরা হলেন জর্জ ওয়াশিংটন, থমাস জেফারসন, থিওডোর রুজভেল্ট ও আব্রাহাম লিংকন। এখানে দাঁড়িয়ে ট্রাম্প সমর্থকদের প্রতি আমেরিকার অখন্ডতা রক্ষার আহ্বান জানান। তিনি বিক্ষোভকারীদের জাতিগত ন্যায়বিচারের দাবিকে আমেরিকার ইতিহাস নির্মূল, বীরদের বীরত্বগাঁথাকে বিকৃত, মূল্যবোধ মুছে ফেলা এবং শিশুদের উদ্বুদ্ধ করার ক্ষমাহীন প্রচারণা বলে বর্ণনা করেন। গত ২৫ মে মিনেপোলিসে শেতাঙ্গ পুলিশের হাতে জর্জ ফ্লয়েড নামের নিরস্ত্র এক কৃষাঙ্গ প্রাণ হারালে তা নিয়ে বিক্ষোভ শুরু হয়। হত্যাকান্ডের ভিডিও সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ভাইরাল হলে যুক্তরাষ্ট্র জুড়ে বিক্ষোভ তীব্র থেকে তীব্রতর হয়ে ওঠে। তিনি বিক্ষোভকারীদের প্রতিবাদ বিক্ষোভকে সহিংস মারামারি উলে¬খ করে বলেন, তারা আমাদের নি:শব্দ করতে চায়। কিন্তু আমরা নিরব হবো না। এখন সময় গলা চড়িয়ে দৃঢ়তার সঙ্গে কথা বলার। এ দেশের অখন্ডতাকে রক্ষা করার। এদিকে ট্রাম্প যখন তার বক্তব্যে এসব কথা বলছিলেন তখন শুক্রবার দেশটিতে একদিনের সংক্রমণ ৫৭ হাজারেরও বেশি দাঁড়িয়েছে। যা আগের একদিনের সংক্রমণের রেকর্ড ভেঙে দিয়েছে। তবে ট্রাম্প ভাইরাস সংক্রমণ রোধে যারা নিরলস কাজ করে যাচ্ছেন তাদের ব্যাপকভাবে ধন্যবাদও দেননি। আর করোনা নিয়েও তেমন কোন কথাবার্তা বলেননি। আমেরিকায় করোনা মহামারির কারণে এক লাখ ৩০ হাজারেরও বেশি লোক মারা গেছে। দেশটির সংক্রমণ রোগ বিষয়ক শীর্ষ বিশেষজ্ঞ এন্থনি ফুচি বলেছেন, সংক্রমণের সাম্প্রতিক ঊর্ধ্বগতি পুরো দেশকে ঝুঁকিতে ফেলেছে। বৃহস্পতিবার টুইট করে ট্রাম্প সংক্রমণ বেড়ে যাওয়ার জন্যে বেশি বেশি পরীক্ষাকে দায়ি করেন। একইসঙ্গে তিনি মৃত্যু হার কমেছে বলেও উলে¬খ করেন। ফাস্ট লেডি মেলানিয়াকে সাথে করে ট্রাম্প সাউথ ডাকোটায় গেলে তাকে উষ্ণ অভিনন্দন জানানো হয়। এ রাজ্যে তিনি ২০১৬ সালে খুব সহজ জয় পেয়েছেন।

এরশাদের মৃত্যুবার্ষিকী উপলক্ষে সভা আজ

ঢাকা অফিস ॥ আগামী ১৪ জুলাই জাতীয় পার্টির (জাপা) প্রতিষ্ঠাতা চেয়ারম্যান হুসেইন মুহম্মদ এরশাদের প্রথম মৃত্যুবার্ষিকী পালন উপলক্ষে আজ রোববার এক সভা অনুষ্ঠিত হবে। গতকাল শনিবার গণমাধ্যমে পাঠানো এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য জানানো হয়েছে। সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে জানানো হয়, এরশাদের প্রথম মৃত্যুবার্ষিকী যথাযথ পালন উপলক্ষে রোববার বেলা ১১টায় জাপা চেয়ারম্যানের বনানী কার্যালয়ে এ সভা অনুষ্ঠিত হবে। পার্টি চেয়ারম্যান জি এম কাদেরের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠেয় সভায় পার্টির সিনিয়র কো-চেয়ারম্যান ব্যারিস্টার আনিসুল ইসলাম মাহমুদ, কো-চেয়ারম্যান এ বি এম রুহুল আমিন হাওলাদার, কাজী ফিরোজ রশীদ, জিয়া উদ্দিন আহমেদ বাবলু, সৈয়দ আবু হোসেন বাবলা, মুজিবুল হক চুন্নু, সালমা ইসলাম ও জাতীয় পার্টির মহাসচিব মো. মসিউর রহমান রাঙ্গা উপস্থিত থাকবেন। সভায় সংশ্লিষ্ট কয়েকজন প্রেসিডিয়াম সদস্য উপস্থিত থাকবেন বলেও জানানো হয়েছে।

করোনা মোকাবিলায় ৫০ মিলিয়ন ডলার ঋণ দিচ্ছে দক্ষিণ কোরিয়া

ঢাকা অফিস ॥ চলমান করোনাভাইরাসের মহামারি মোকাবিলায় বাজেট সাপোর্ট হিসেবে বাংলাদেশকে ৫০ মিলিয়ন মার্কিন ডলার তথা ৪২৪ কোটি ৫৫ লাখ টাকা (৮৪ টাকা ৯১ পয়সা হারে) নমনীয় ঋণ দিচ্ছে দক্ষিণ কোরিয়া। দক্ষিণ কোরিয়ার উন্নয়ন সহযোগী প্রতিষ্ঠানের ‘ইডিসিএফ প্রোগ্রাম লোন ফর কোভিড-১৯ ইমার্জেন্সি রেসপন্স প্রোগ্রাম অব বাংলাদেশ’ শীর্ষক প্রোগ্রামের আওতায় এ ঋণ দেয়া হবে। সম্প্রতি এ বিষয়ে মতামত চেয়ে অর্থ মন্ত্রণালয়ে চিঠি দিয়েছে অর্থনৈতিক সম্পর্ক বিভাগ। অর্থ মন্ত্রণালয় সূত্রে এ তথ্য জানা গেছে। চিঠিতে বলা হয়, ‘ইডিসিএফ প্রোগ্রাম লোন ফর কোভিড-১৯ ইমার্জেন্সি রেসপন্স প্রোগ্রাম অব বাংলাদেশ’ শীর্ষক প্রোগ্রামটি বাস্তবায়নের লক্ষ্যে ‘দক্ষিণ কোরিয়ার ইকোনোমি ডেভেলপমেন্ট কো-অপারেশন ফার্ম’ (ইডিসিএফ) বাংলাদেশকে বাজেট সাপোর্ট হিসেবে ৫০ মিলিয়ন ডলার নামনীয় ঋণ সহায়তা প্রদানে সম্মত হয়েছে। এ বিষয়ে মতামত প্রদানের জন্য নির্দেশক্রমে অনুরোধ জানানো হলো। এদিকে করোনাভাইরাস মহামারির ফলে সৃষ্ট ক্ষয়ক্ষতি কাটিয়ে উঠতে এবং ভালো কর্মসংস্থানের লক্ষ্যে তিনটি প্রকল্পে ১.০৫ বিলিয়ন ডলার (বাংলাদেশি মুদ্রায় প্রায় ৯ হাজার কোটি টাকা) ঋণ সম্প্রতি অনুমোদন দিয়েছে বিশ্বব্যাংক। গত ২০ জুন বিশ্বব্যাংক এক বিবৃতিতে জানিয়েছে, এই ঋণের ফলে কমপক্ষে ২.৫ লাখ তরুণের কর্মসংস্থান হবে আর বেসরকারি বিনিয়োগ ২ বিলিয়ন ডলার হবে। পাশাপাশি সরকারের প্রতিবছর ২০০ মিলিয়ন ডলার সাশ্রয় হবে। এর মধ্যে, ৫০০ মিলিয়ন ডলার দেয়া হবে বেসরকারি বিনিয়োগ ও ডিজিটাল উদ্যোক্তা তৈরি শীর্ষক প্রকল্পে। এই বহুপাক্ষিক সংস্থার মতে, তাদের ৫০০ মিলিয়ন ডলার ঋণ থেকে মূলধন নিয়ে দেশের সফটওয়্যার পার্ক আর ইপিজেডে ২ বিলিয়ন ডলার বেসরকারি বিনিয়োগ হবে, যা প্রায় ১.৫ লাখ কর্মসংস্থান তৈরির সুযোগ সৃষ্টি করবে। আর এই কর্মসংস্থানের একটি উল্লেখযোগ্য অংশ হবে নারী, যার ৪০ শতাংশ সফটওয়্যার পার্ক এবং ২০ শতাংশ ইপিজেডে হবে বলে ব্যাংকটি মনে করে। এছাড়া অর্থনীতি ও ডিজিটাল সরকার ব্যবস্থা আরও শক্তিশালী করা বিষয়ক প্রকল্পে ২৯৫ মিলিয়ন ডলার ঋণ অনুমোদন দিয়েছে বিশ্বব্যাংক। এই প্রকল্পের মাধ্যমে প্রায় ১ লাখ কর্মসংস্থান সৃষ্টিসহ ১ লাখ তরুণকে আইটির ওপর প্রশিক্ষণ দেয়া হবে। পাশাপাশি সরকারের ২০০ মিলিয়ন সাশ্রয়সহ অতিরিক্ত ৩০০ মিলিয়ন ডলার রাজস্ব আয় হবে। বিশ্বব্যাংক গত ২০ জুন এই দুটি প্রকল্পে ঋণ ছাড়াও বাজেট সহায়তা হিসেবে ২৫০ মিলিয়ন ডলারের ঋণ অনুমোদন দিয়েছে। যা সরকারকে কোভিড-১৯ এর ক্ষতি থেকে অর্থনীতিকে টেনে তুলতে তার কর্মসূচি বাস্তবায়নে সহায়তা করবে। এছাড়া করোনা পরিস্থিতি মোকাবিলায় বাংলাদেশের জন্য ৫০ কোটি ডলার (৪ হাজার ২৫০ কোটি টাকা) ঋণ অনুমোদন করেছে এশীয় উন্নয়ন ব্যাংক (এডিবি)। গত ৮ মে সংস্থাটির এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে জানানো হয়েছে, এ বিষয়ে এডিবির প্রেসিডেন্ট মাসাটসুগু আসাকাওয়া উল্লেখ করেন, কোভিড-১৯-এর প্রভাবে অর্থনৈতিকভাবে ঝুঁকিতে থাকা দেশগুলোর সহায়তায় আমরা নিবিড়ভাবে কাজ করব। উল্লেখ্য, বাংলাদেশে করোনা পরিস্থিতি মোকাবিলায় কয়েক ধাপে সহায়তার ঘোষণা দিয়েছে এডিবি। সরকারের সামাজিক নিরাপত্তা কর্মসূচি ছাড়াও সরকারের প্রাতিষ্ঠানিক সক্ষমতা বৃদ্ধি, সেবা প্রদানের নতুন পদ্ধতি ব্যবহার, সামাজিক নিরাপত্তা কর্মসূচিতে নারীর সক্ষমতা অর্জন ছাড়াও পর্যবেক্ষণ ও মূল্যায়ন সক্ষমতা বৃদ্ধির জন্য ১০ লাখ ডলার বা সাড়ে ৮ কোটি টাকা কারিগরি অনুদান প্রদান করবে। এর আগে গত ৩০ এপ্রিল এডিবি করোনা পরিস্থিতি মোকাবিলায় ১০ কোটি ডলার বা ৮৫০ কোটি টাকা নমনীয় ঋণ অনুমোদন করে। জরুরি ভিত্তিতে সাড়ে ৩ লাখ ডলার বা প্রায় ৩০ কোটি টাকা ছাড় করে। এ ছাড়া কারিগরি শিক্ষার্থীদের মাসিক সহায়তা দেয়ার জন্য ১১ কোটি টাকা ছাড় করে।

রেলে অতিরিক্ত যাত্রী পরিবহন করা হবে না – রেলমন্ত্রী

ঢাকা অফিস ॥ রেলপথমন্ত্রী অ্যাডভোকেট নুরুল ইসলাম সুজন বলেছেন, রেলে আমরা কোনো প্রকার অতিরিক্ত যাত্রী পরিবহন করবো না। স্বাস্থ্যবিধি মেনে আমরা রেল পরিচালনা করছি। এখন পর্যন্ত অর্ধেক প্যাসেঞ্জার নিয়ে যাতায়াত করছে ট্রেন। তিনি বলেন, এখন পর্যন্ত মিডিয়া ও রেলের যাত্রীসহ কারো কাছ থেকে আমরা তেমন কোনো অভিযোগ পাইনি। গত ঈদে যেভাবে ট্রেন চলেছে এ ঈদেও সেভাবেই চলবে, যদি সরকারের কোনো নির্দেশনা না থাকে। গতকাল শনিবার দুপুরে পঞ্চগড়ের বোদা উপজেলা অডিটোরিয়াম চত্বরে মুজিববর্ষ উপলক্ষে ৪শ মেধাবী নারী শিক্ষার্থীদের সাইকেল বিতরণ ও মন্ত্রীর নিজস্ব তহবিল থেকে গরিব দুস্থদের মধ্যে অনুদানের চেক প্রদান অনুষ্ঠান শেষে সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে মন্ত্রী এসব কথা বলেন। এসময় মুজিববর্ষ উপলক্ষে নারীর ক্ষমতায়ন ও বাল্যবিয়ে প্রতিরোধে জেলা প্রশাসনের বিশেষ উদ্যোগে ১৭শ শিক্ষার্থীর মধ্যে বাইসাইকেল বিতরণ অনুষ্ঠানের উদ্বোধন করেন মন্ত্রী। মন্ত্রী নুরুল ইসলাম সুজন আরো বলেন, আমাদের নতুন করে ট্রেনের সংখ্যা বাড়ানোর কোনো পরিকল্পনা নেই। আর করোনার মধ্যে যানযটের কোনো সুযোগ নেই। যদি কোরবানির ঈদকে নিয়ে সরকারের কোনো নির্দেশনা না থাকে তবে বর্তমানে যেভাবে ট্রেন চলছে আগামীতেও সেভাবেই চলবে। ঈদকে সামনে রেখে মানুষের মুভমেন্ট যেন কম হয়, সরকার সে আবেদন জানাচ্ছে। অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন- পঞ্চগড় জেলা প্রশাসক (ডিসি) সাবিনা ইয়াসমিন, পুলিশ সুপার (এসি) মোহাম্মদ ইউসুফ আলী, জেলা পরিষদ চেয়ারম্যান আনোয়ার সাদাত স¤্রাট, বোদা উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান ও উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ফারুক আলম টবি, বোদা পৌর মেয়র ওয়াহিদুজ্জামান সুজা প্রমুখ। এর আগে মন্ত্রী জেলার দেবীগঞ্জ উপজেলা পরিষদের হলরুমে বাইসাইকেল বিতরণ ও মন্ত্রীর নিজস্ব তহবিল থেকে গরিব দুস্থদের মধ্যে অনুদানের চেক বিতরণ করেন।

 

পাটকল বন্ধ ঘোষণা মুক্তিযুদ্ধের চেতনার পরিপন্থী – ন্যাপ

ঢাকা অফিস ॥ রাষ্ট্রায়ত্ত পাটকল বন্ধ ঘোষণার সরকারি সিদ্ধান্ত মুক্তিযুদ্ধের চেতনা পরিপন্থী, দায়িত্বহীন ও আত্মঘাতী। অতীতের সরকারের পথ অনুসরণ করে রাষ্ট্রয়ত্ত পাটকল বন্ধে বর্তমান সরকারের চূড়ান্ত ঘোষণা গণবিরোধী অবস্থানেরই বহিঃপ্রকাশ বলে মন্তব্য করেছেন বাংলাদেশ ন্যাশনাল আওয়ামী পার্টি-বাংলাদেশ ন্যাপের নেতারা। পাটকল বন্ধে সরকারের চূড়ান্ত ঘোষণার পরিপ্রেক্ষিতে গতকাল শনিবার গণমাধ্যমে প্রেরিত এক প্রতিক্রিয়ায় পার্টির চেয়ারম্যান জেবেল রহমান গানি ও মহাসচিব এম. গোলাম মোস্তফা ভুইয়া এসব কথা বলেন। তারা বলেন, যে যুক্তিতে অতীতের জোট সরকার আদমজী পাটকল বন্ধ করে দিয়েছিল এখন আওয়ামী লীগ সরকারও একই যুক্তিতে বাকি পাটকলগুলো বন্ধ করে দিয়ে প্রমাণ করেছে সা¤্রাজ্যবাদীদের স্বার্থ রক্ষায় শাসকগোষ্ঠির মধ্যে প্রচন্ড মিল রয়েছে। এ ক্ষেত্রে তারা মুদ্রার এপিঠ-ওপিঠ। নিজেদের মধ্যে বিরোধ যতই থাকুক সা¤্রাজ্যবাদী শক্তির স্বার্থ রক্ষায় তাদের চরিত্র একই। মাথা ব্যথার জন্য মাথা কেটে ফেলা কোনো সমাধান হতে পারে না বলে মন্তব্য করে নেতৃদ্বয় বলেন, রাষ্ট্রায়ত্ত পাটকলের অব্যবস্থাপনা, চুরি, দুর্নীতি ও অনিয়মের জন্য পুরো রাষ্ট্রায়ত্ত শিল্পই উঠে যেতে পারে না। দুর্নীতি ও অব্যবস্থাপনাকে প্রশ্রয় দিয়ে এবং পাটকলের আধুনিকায়ন না করে আজ যেভাবে লোকসান দেখানো হচ্ছে তার দায়দায়িত্ব সরকার, সরকারি প্রতিষ্ঠান ও তাদের কর্মকর্তাদেরই বহন করতে হবে। শ্রমিকরা কেন এর দায় বহন করবে? ন্যাপের এই দুই শীর্ষ নেতা আরও বলেন, অবশেষে পাটকল রক্ষার সব যুক্তিতর্ক, প্রস্তাবনা ও শ্রমিকদের দাবিকে উপেক্ষা করে রাষ্ট্রায়ত্ত সকল পাটকল বন্ধ করে সরকার জনগণের স্বার্থের বিরুদ্ধেই অবস্থান গ্রহণ করল। যা জাতীয় জীবনে দুঃখ, হতাশা ও মর্মবেদনার কারণ হয়ে থাকবে। করোনার ভয়াবহ দুর্যোগকালে পাটকলগুলোর বন্ধের মাধ্যমে হাজার হাজার শ্রমিকের ভবিষ্যত অনিশ্চয়তার মধ্যে ঠেলে দিয়ে মুক্তিযুদ্ধের চেতনা ও ঘোষণার কফিনে আরেকটি পেরেক মারল সরকার। তারা বলেন, পাটকল পরিচালনার জন্য বিজেএমসি গঠিত হয়েছিল; লক্ষ্য ছিল পাট ও পাটশিল্পের বিকাশ। কিন্তু দুঃখজনক হলেও সত্য শাসকগোষ্ঠির সীমাহীন অবহেলা আর ঔদাসিন্যে পাট খাত পিছিয়ে পড়ে। ১০০ শতাংশ মূল্য সংযোজনের সম্ভাবনা ছিল পাট খাতে, যা কাজে লাগানো যায়নি। পুরো পাটের অর্থনীতিকে সা¤্রাজ্যবাদী দাতা গোষ্ঠী, বিশ্বব্যাংক ও আইএমএফের কুপরামর্শে ধ্বংস করে দেয়া হয়েছে। বিশ্বব্যাংকের তাবেদার আমলাদের কুপরামর্শে ও লুটেরা পুজিঁপতিদের স্বার্থের কাছে পরাস্ত হয়ে সরকার পাটকল বন্ধের যে সিদ্ধান্ত নিয়েছে তা আত্মঘাতী। নেতৃদ্বয় বলেন, সকল রাষ্ট্রয়ত্ত পাটকল বন্ধ করে দিয়ে এর হাজার হাজার কোটি টাকার সম্পত্তিকে সরকার মুষ্টিমেয় লুটেরাদের হাতে তুলে দেয়ার আয়োজন করছে। সরকারের এই সিদ্ধান্তে পরোক্ষভাবে লাভবান হবে লুটেরাগোষ্ঠি। আন্তর্জাতিক বাজারে পাটজাত পণ্যের যখন চাহিদা বেড়েছে তখন রাষ্ট্রায়ত্ত পাটকল বন্ধের সিদ্ধান্ত কোনোভাবেই মেনে নেয়া যায় না।

দৌলতপুরে ফেনসিডিলসহ আটক-২

দৌলতপুর প্রতিনিধি ॥ কুষ্টিয়ার দৌলতপুরে ফেনসিডিলসহ ২জন মাদক ব্যবসায়ীকে আটক করেছে পুলিশ। গতকাল শনিবার ভোররাত ৪টার দিকে উপজেলার মশাউড়া গ্রামের আজিম উদ্দিন মন্ডলের ছেলে শ্যামলের বাড়িতে অভিযান চালিয়ে ৪৭ বোতল ফেনসিডিলসহ শ্যামল (৩০) ও গরুড়া ডিজিটি মোড়ের রেজাউল সর্দারের ছেলে মাদক ব্যবসায়ী সামিরুল (৩৫) কে আটক করে। মাদক পাচার ও মজুদের গোপন সংবাদ পেয়ে মথুরাপুর ক্যাম্পের ইনচার্জ এস আই জব্বার সঙ্গীয় পুলিশ নিয়ে শ্যামলের বাড়িতে অভিযান চালায়। এ সময় বঙ্খাটের নীচ থেকে ৪৭ বোতল ফেনসিডিল উদ্ধার ও ফেনসিডিলের সাথে জড়িত শ্যামল ও সামিরুলকে আটক করে। এ ঘটনায় দৌলতপুর থানায় মামলা হলে গতকাল দুপুরে তাদের আদালতে সোপর্দ করা হয়েছে।

দৌলতপুরে সাংবাদিক আতিয়ার রহমানের পিতার দাফন সম্পন্ন

দৌলতপুর প্রতিনিধি ॥ কুষ্টিয়ার দৌলতপুর প্রেসক্লাবের সদস্য সাংবাদিক আতিয়ার রহমানের পিতা মতিয়ার রহমানের দাফন সম্পন্ন হয়েছে। শুক্রবার দিবাগত রাত সাড়ে ১২টার দিকে তারাগুনিয়া কবরস্থানে দ্বিতীয় জানাযা শেষে মরহুমের দাফন সম্পন্ন হয়। এরআগে এশার নামাজ শেষে মরহুমের নিজ বাড়ির আঙিনায় প্রথম জানাযা অনুষ্ঠিত হয়। শুক্রবার বিকালে তারাগুনিয়া থানামোড় এলাকার নিজ বাড়িতে মতিয়ার রহমান (৮২) ইন্তেকাল করেন। তিনি দীর্ঘদিন ধরে বাধ্যর্কজনিত রোগে ভুগছিলেন। সাংবাদিক আতিয়ার রহমানের পিতার মৃত্যুতে দৌলতপুর প্রেসক্লাবের সকল সাংবাদিকবৃন্দসহ দৌলতপুরের সর্বস্তরের সাংবাদিক গভীর শোক ও শোকসন্তপ্ত পরিবারের প্রতি সমবেদনা জানিয়েছেন।

বিশ্বে করোনায় মৃতের সংখ্যা ৫ লাখ ২৯ হাজার ছাড়িয়েছে

ঢাকা অফিস ॥ চীনের হুবেই প্রদেশ থেকে বিশ্বব্যাপী ছড়িয়ে পড়া বৈশ্বিক মহামারি করোনাভাইরাসে (কোভিড-১৯) আক্রান্ত হয়ে বিশ্বজুড়ে শনিবার বাংলাদেশ সময় বিকাল ৫টা ১০ মিনিট পর্যন্ত করোনায় মৃতের সংখ্যা বেড়ে দাঁড়িয়েছে ৫ লাখ ২৯ হাজার ৪৮৬ জন। আন্তর্জাতিক জরিপকারী সংস্থা ওয়ার্ল্ডোমিটার এ সংবাদ জানিয়েছে। বিশ্বব্যাপী করোনাভাইরাসের সর্বশেষ পরিসংখ্যান জানার অন্যতম ওয়েবসাইট ওয়ার্ল্ডোমিটারের তথ্য অনুযায়ী, গত বছরের ডিসেম্বরে চীন থেকে সংক্রমণ শুরু হওয়া অত্যন্ত ছোঁয়াচে কোভিড-১৯ রোগে এ পর্যন্ত আক্রান্ত হয়েছেন বিশ্বের ১ কোটি ১২ লক্ষ ১০ হাজার ৫২৭ জন। তাদের মধ্যে বর্তমানে ৪৩ লাখ ২৪ হাজার ৪৮০ জন চিকিৎসাধীন যার মধ্যে ৫৮ হাজার ৮২১ জন আশঙ্কাজনক অবস্থায় রয়েছেন। এ পর্যন্ত করোনাভাইরাস আক্রান্তদের মধ্যে ৬৩ লাখ ৫৬ হাজার ৫৬১ জন সুস্থ হয়ে উঠেছেন। বাংলাদেশে শনিবার পর্যন্ত করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে এ পর্যন্ত মৃতের সংখ্যা বেড়ে দাঁড়িয়েছে ১ হাজার ৯৯৭ জনে। এ ছাড়া মোট ১ লাখ ৫৯ হাজার ৬৭৯ জন করোনা আক্রান্ত রোগী শনাক্ত হয়েছেন বলে জানিয়েছে সরকার। গত ১১ মার্চ করোনাভাইরাস সংকটকে মহামারি ঘোষণা করে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা (ডবি¬উএইচও)।

দৌলতপুরে মানষিক ভারসাম্যহীন ব্যক্তির মৃতদেহ উদ্ধার

দৌলতপুর প্রতিনিধি ॥ কুষ্টিয়ার দৌলতপুরে আবু বক্কর ছিদ্দিক মালিথা (৬০) নামে মানষিক ভারসাম্যহীন প্রতিবন্ধী ব্যক্তির মৃতদেহ উদ্ধার হয়েছে। গতকাল শনিবার বিকাল সাড়ে ৫টার দিকে দৌলতপুর থানা পুলিশ একটি পুকুর থেকে তার ভাষমান মৃতদেহ উদ্ধার করে। সে উপজেলার তারাগুনিয়া গংগারামপুর এলাকার মৃত নিরান মালিথার ছেলে। স্থানীয়রা জানায়, গতকাল বিকেলে উপজেলার প্রাগপুর ইউনিয়নের সীমান্ত সংলগ্ন জামালপুর গ্রামের একটি পুকুরে পচা দূর্গন্ধযুক্ত একটি মৃতদেহ ভাষতে দেখে পুলিশকে খবর দেয় এলাকাবাসী। খবর পেয়ে দৌলতপুর থানা পুলিশ পুকুর থেকে মৃতদেহটি উদ্ধার করে। পরে তারাগুনিয়া গংগারামপুর এলাকার আবু বক্কর ছিদ্দিক মালিথার স্বজনরা তার মৃতদেহ শনাক্ত করে। পরিবারের লোকজন জানায় গত ৩দিন ধরে আবু বক্কর ছিদ্দিক মালিথা নিখোঁজ ছিল। সে মানষিক ভারসাম্যহীন ছিল। অসাবধানবসত পুকুরে পড়ে গিয়ে পানিতে ডুবে যেতে পারে সে। পরে তার মৃতদেহ ভেষে উঠে।

মিরপুর পৌরসভায় নিম্নমানের সামগ্রী দিয়ে ড্রেন নির্মাণ করায় স্থানীয়দের চাপের মুখে কাজ বন্ধ

নিজ সংবাদ ॥ কুষ্টিয়ার মিরপুর পৌরসভায় নিম্নমানের সামগ্রী দিয়ে  ড্রেন নির্মাণ করার কারণে স্থানীয় বাসিন্দারা কাজ বন্ধ করে দিয়েছে। গতকাল শনিবার দুপুরে পৌরসভার সচেতন নাগরিকরা ঘটনাস্থলে উপস্থিত হয়ে ড্রেন নির্মাণের কাজ বন্ধ করে দেন। এসময় পৌরসভার উপসহকারী প্রকৌশলী আনোয়ার হোসেন অবস্থা বেগতিক দেখে ঘটনাস্থল হতে পালিয়ে যান। পৌর নাগরিকরা জানান, সেক্টরের সামনে ড্রেন নির্মানের কোন প্রয়োজন নেই। এখানকার অধিকাংশ জমি কৃষি কাজে ব্যবহৃত হয়। এই ড্রেন নির্মাণের ফলে এসব জমিতে চাষ-আবাদ করা কঠিন হয়ে পড়বে। এ ব্যাপারে স্থানীয় আওয়ামীলীগ নেতা হাজী সাদ আলী, নাজমূল, যুবলীগ নেতা আরিফ, তানজিল হোসেনের সাথে মুঠোফোনে আলাপ করলে তারা জানান, ড্রেন নির্মাণে  যেখানে পাথর দিয়ে ঢালাই দেয়ার কথা সেখানে নিম্নমানের ইটের খোয়া দিয়ে ঢালাই দেয়া হচ্ছে। সিডিউলে যে গ্রেডের রড দেয়ার কথা তা না দিয়ে নিম্ন গ্রেডের রড ব্যবহার করে ড্রেনটি অপরিকল্পিতভাবে নির্মাণ করা হচ্ছে। ড্রেন নির্মাণের ফলে শত শত বিঘা জমিতে চাষ আবাদে মারাত্মক ব্যহত হবে। সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের কাজে জনস্বার্থে ড্রেনের কাজটি অবিলম্বে বন্ধের জোর দাবী জানাচ্ছি।

কুষ্টিয়ায় র‌্যাবের অভিযানে মাদকসহ আটক-২

আমলা অফিস ॥ কুষ্টিয়ার র‌্যাবের অভিযানে মাদক (ইয়াবা) সহ জনকে আটক করেছে আইন শৃঙ্খলা বাহিনীর সদস্যরা। গতকাল শনিবার (০৪ জুলাই) দুপুরে কুষ্টিয়ার মিরপুর উপজেলার কাতলামারী বাজারে অভিযান চালায় র‌্যাব-১২ এর একটি দল। এসময় তারা ইয়াবাসহ দুইজনকে আটক করে। সন্ধ্যায় এক প্রেস বিজ্ঞপ্তিতে র‌্যাব-১২ (কুষ্টিয়া) কোম্পানীর ভারপ্রাপ্ত কমান্ডার স্বজল কুমার সরকার এ তথ্য নিশ্চিত করেন। র‌্যাব-১২ জানায়, গোপন সংবাদের ভিক্তিতে উক্ত এলাকায় অভিযান চালিয়ে দৌলতপুর উপজেলার পিপুলবাড়ীয়া এলাকার হযরত আলীর ছেলে টুটুল (২২) এবং পাশ্ববর্তী ছিলিমপুর এলাকার মাসুদ রানার ছেলে তৌফিক রানা সিয়াম (২০) কে আটক করা হয়। এসময় তাদের কাছ থেকে ১১৫ পিস ইয়াবা ট্যাবলেট উদ্ধার করা হয়। তাদের বিরুদ্ধে মিরপুর থানায় একটি মামলা দায়ের করা হয়েছে বলেও জানায় র‌্যাব।

শেখ হাসিনার নেতৃত্বে উন্নত রেলব্যবস্থা গড়ে তোলা হবে – সচিব

ঢাকা অফিস ॥ পাবনার ঈশ্বরদী জংশন স্টেশনের সংস্কার কাজ পরিদর্শন করেছেন রেলপথ মন্ত্রণালয়ের সচিব মো. সেলিম রেজা। গতকাল শনিবার দুপুর আড়াইটায় তিনি এই রেল জংশন পরিদর্শন করেন। এসময় কাজের গুনগত মান সম্পর্কে সন্তোষ প্রকাশ করে তিনি বলেন, প্রধানমন্ত্রী বঙ্গবন্ধু কন্যা শেখ হাসিনার নেতৃত্বে এদেশে উন্নত রেলব্যবস্থা গড়ে তোলা হবে। রেলসচিব সেলিম রেজা বলেন, আমরা সময়ের সঙ্গে তাল মিলিয়ে একটি যুগোপযোগী আন্তর্জাতিক মানের যোগাযোগ ব্যবস্থা গড়ে তুলতে চাই। প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশ এবং তার সুযোগ্য নেতৃত্বে রেলওয়ের উন্নয়নের জন্য যাত্রীসেবার মান বৃদ্ধি করতে প্রকল্পের মাধ্যমে ব্যাপক পরিকল্পনা হাতে নেওয়া নেওয়া হয়েছে। এ সরকারের আমলে কাজগুলো সুন্দরভাবে বাস্তবায়ন হলে রেলওয়ের চেহারা বদলে যাবে। বঙ্গবন্ধু কন্যা শেখ হাসিনার নেতৃত্বে বঙ্গবন্ধুর স্বপ্নের সোনার বাংলা বাস্তবে রূপ দিতে আমরা বদ্ধপরিকর। সবার সহযোগিতা নিয়ে আমরাও এগিয়ে যেতে চাই। এর আগে বেলা সাড়ে ১১টায় ঈশ্বরদী উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা এবং উপজেলা প্রশাসনের সঙ্গে এক মতবিনিময় সভায় যোগদান করেন তিনি। পরে বিকেলে পাকশী বিভাগীয় ব্যবস্থাপকের কক্ষে রেলওয়ের প্রধান প্রধান কর্মকর্তা রেলওয়ে বিভাগীয় কর্মকর্তাদের সঙ্গে এক মতবিনিময় অনুষ্ঠিত হয়। এসময় উপস্থিত ছিলেন, পশ্চিমাঞ্চল রেলওয়ে জোনের জেনারেল ম্যানেজার (জিএম) মিহির কান্তি গুহ, প্রধান প্রকৌশলী আল ফাত্তাহ মো. মাসউদূর রহমান, প্রধান পরিবহন কর্মকর্তা, শহিদুল ইসলাম, পাকশী বিভাগীয় ব্যবস্থাপক (ডিআরএম) আসাদুল হক, বিভাগীয় পরিবহন কর্মকর্তা নাসির উদ্দিন, বিভাগীয় বাণিজ্যিক কর্মকর্তা ফুয়াদ, হোসেন আনন্দ, বিভাগীয় প্রকৌশলী-১ বীরবল ম-ল, বিভাগীয় প্রকৌশলী-২ আবদুর রহিম, বিভাগীয় সংকেত ও টেলিকম প্রকৌশলী বিভাগীয় যান্ত্রিক প্রকৌশলী (লোকো) আশিষ কুমার ম-ল, বিভাগীয় যান্ত্রিক প্রকৌশলী (ক্যারেজ) মমতাজুল ইসলাম, রেলওয়ে নিরাপত্তা বাহিনীর কমান্ডেন্ট রেজাউন উর রহমান, রেলওয়ে, থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা গোপাল কুমার। পশ্চিমাঞ্চল রেলওয়ে পাকশীর বিভাগীয় ব্যবস্থাপক (ডিআরএম) আসাদুল হক আসাদ জানান, ঈশ্বরদী বাইপাস স্টেশন থেকে রূপপুর পারমাণবিক বিদ্যুৎ প্রকল্প পর্যন্ত ২৬ কিলোমিটার রেলসংযোগের জন্য ৩৩৫ কোটি টাকা ব্যয়ে নতুন রেললাইন ও নতুন স্টেশন স্থাপন কাজ চলছে। এছাড়াও রেলওয়ের যাত্রী সেবার মানোন্নয়নের জন্য ব্রিটিশ শাসনামলে নির্মিত ঈশ্বরদী জংশন স্টেশনকেও করা হচ্ছে সংস্কার। এই জংশন স্টেশনে এক সঙ্গে ১৮টি ট্রেন দাঁড়ানোর জন্য রেললাইন স্থাপন করা হচ্ছে। একই সঙ্গে মিটার গেজ ও ব্রডগেজ (ডুয়েল) লাইনের জন্য দুই পাশে সম্প্রসারণ কাজ প্রায় শেষের দিকে। কাজের মান কাজের অগ্রগতি দেখতে সচিব মহোদয় সন্তোষ প্রকাশ করেছেন। ঈশ্বরদী রেলওয়ে স্টেশন সূত্রে জানা যায়, রেলপথ মন্ত্রণালয়ের অধীনে রূপপুর পারমাণবিক বিদ্যুৎ কেন্দ্রে রেললাইন নির্মাণ, নতুন স্টেশন স্থাপন, রেললাইন সংস্কার ও সম্প্রসারণ কাজ চলছে। পাশাপাশি ঈশ্বরদী প্ল্যাটফর্মে যাত্রীদের সেবার মান বৃদ্ধির জন্য প্ল্যাটফর্ম সংস্কার, ১৮টি কোচ স্টেশনে দাঁড়ানোর উপযোগী করতে সম্প্রসারণ, ট্রেন থেকে শিশু, বৃদ্ধ ও অসুস্থ রোগীদের খুব সহজেই নামার সুবিধার্থে প্ল্যাটফর্ম উঁচুকরণ, যাত্রীসেবার মান বৃদ্ধির লক্ষ্যে আধুনিক টয়লেট, বসার স্থান, বিশ্রামাগারসহ রেলওয়ে স্টেশনটিকে ডিজিটালাইজড করতে নানামুখী উন্নয়ন কাজ চলছে। রেলওয়ের পাকশী বিভাগীয় ব্যবস্থাপক (ডিআরএম) আসাদুল হক জানান, ঈশ্বরদী রেল স্টেশনটিতে বিদ্যমান সমস্যাগুলো সমাধানের লক্ষ্যেই স্টেশনটি আধুনিকায়ন ও যুগোপযোগী করে তোলার কাজ চলছে। খুব শিগগিরই এসব কাজ শেষ করার চেষ্টা চলছে।

পদায়ন-বদলিতে তদবির কালচার বন্ধ করা হবে – আইজিপি

ঢাকা অফিস ॥ বাংলাদেশ পুলিশে বদলির জন্য তদবির কালচারকে চিরতরে বিদায় করতে চান বাহিনীর মহাপরিদর্শক (আইজিপি) ড. বেনজীর আহমেদ। তিনি বলেছেন, পুলিশ কর্মকর্তা এবং বাহিনীর জন্য বাস্তবসম্মত বদলি ও পদায়ন নীতিমালা প্রণয়ন ও বাস্তবায়নের মাধ্যমে তদবির কালচার বিদায় করা হবে। গতকাল শনিবার বিকেলে রাজারবাগে বাংলাদেশ পুলিশ অডিটরিয়ামে ঢাকা মহানগর পুলিশ (ডিএমপি) আয়োজিত বিশেষ অপরাধ ও আইন-শৃঙ্খলা সংক্রান্ত সভায় প্রধান অতিথির বক্তৃতায় আইজিপি এ কথা বলেন। ডিএমপি কমিশনার মোহা. শফিকুল ইসলামের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে ডিএমপির সব থানার ওসিসহ ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন। সন্তানদের লেখাপড়ার সুবিধার কথা বিবেচনা করে অধিকাংশ পুলিশ কর্মকর্তা এবং সদস্য ঢাকার বাইরে যেতে চান না উল্লেখ করে আইজিপি বলেন, ইতোমধ্যেই গতানুগতিক ধারা পাল্টে পুলিশ বাহিনীতে বদলিতে নতুনত্ব আনা হয়েছে। এ সংকট নিরসনের লক্ষ্যে ঢাকার বাইরে বিভাগীয় শহরে মানসম্মত শিক্ষা প্রতিষ্ঠান স্থাপনের উদ্যোগ নেয়ার কথা বলেন আইজিপি। এ ছাড়া বিভাগীয় পর্যায়ে পুলিশের চাকরিকে আকর্ষণীয় করতে বিভাগীয় শহরগুলোতে পুলিশ সদস্যদের জন্য মানসম্মত চিকিৎসা সুবিধা নিশ্চিত করারও প্রত্যয় ব্যক্ত করেন তিনি। বেনজীর আহমেদ বলেন, করোনাভাইরাসের এ সময়ে গত তিন মাসে পুলিশ বদলে গিয়েছে। পুলিশ জনগণের হৃদয়ে স্থান করে নিয়েছে। জনগণের অকুণ্ঠ সমর্থন ও বিশ্বাস অর্জন করেছে। করোনায় পুলিশ জনগণের পাশে গিয়ে যেভাবে সেবা দিয়েছে, এর বেশিরভাগই পুলিশের কাজ ছিল না, এজন্য পুলিশকে বলাও হয়নি, নির্দেশও দেয়া হয়নি। কিন্তু পুলিশ এ কাজটি করেছে একান্তই নিজের দায়িত্ববোধ থেকে। স্বাধীনতা যুদ্ধের পর পুলিশ এত সম্মান, এত মর্যাদা আর কখনো পায়নি, গত তিন মাসে তা পেয়েছে। এখন জনগণ পুলিশের পক্ষে কথা বলছে, পুলিশের জন্য লিখছে, যারা কথায় কথায় পুলিশের সমালোচনা করতেন, তারাও আজ পুলিশের পক্ষে হৃদয় উজাড় করে বলছেন, পুলিশকে সমর্থন করেছেন। যে সম্মান-মর্যাদা আমরা গত তিন মাসে পেয়েছি তা টাকা দিয়ে কেনা যায় না, মানুষের ভালোবাসা পেতে হলে মানুষের সাথে থাকতে হয়, তাদের কাছে যেতে হয়, মানুষকে ভালোবাসতে হয়। দুর্নীতির বিরুদ্ধে ‘জিরো টলারেন্স’ নীতি ঘোষণা করে পুলিশপ্রধান বলেন, জনগণের পুলিশ হতে হলে এ বাহিনীকে সব ধরনের দুর্নীতিমুক্ত হতে হবে। পুলিশে কোনো দুর্নীতিবাজের ঠাঁই নেই। মাদকের সাথে কোনো পুলিশ সদস্যের সম্পর্ক থাকবে না। পুলিশকে হতে হবে মাদকমুক্ত। পুলিশের নিষ্ঠুরতা বন্ধ করে আইনি সক্ষমতাকে কাজে লাগাতে হবে। পুলিশকে যেতে হবে জনগণের দোরগোড়ায়। পুলিশ কর্মকর্তা এবং ফোর্সেরও সার্বিক কল্যাণ নিশ্চিত করার কথা বলেন তিনি। করোনা আক্রান্ত পুলিশ সদস্যদের সর্বোচ্চ চিকিৎসায় গৃহীত পদক্ষেপের কথা উল্লেখ করে আইজিপি বলেন, রাজারবাগ কেন্দ্রীয় পুলিশ হাসপাতালকে মাত্র দুই সপ্তাহে ২৫০ শয্যার জেনারেল হাসপাতাল থেকে ৫০০ শয্যার কোভিড হাসপাতালে পরিণত করা হয়েছে। করোনা পরীক্ষার জন্য মাত্র ১২ দিনে পিসিআর মেশিন স্থাপন করা হয়েছে। ঢাকায় একটি হাসপাতাল ভাড়া করা হয়েছে। ঢাকার বাইরে বিভাগীয় হাসপাতাল আধুনিকায়ন করা হয়েছে। শুধু তাই নয়, পুলিশ সদস্যদের সংক্রমণের ঝুঁকি এড়ানোর জন্য আবাসন ব্যবস্থা এবং ডিউটিতে পরিবর্তন আনা হয়েছে। এর ফলে পুলিশ সদস্যদের আক্রান্ত হওয়ার সংখ্যা কমেছে এবং মৃত্যুর হার হ্রাস পেয়েছে। আইজিপি আশা প্রকাশ করে বলেন, আমরা সবাই ঐক্যবদ্ধ থাকলে, ঐক্যবদ্ধভাবে কাজ করলে আরও ভালো কিছু করা সম্ভব। আসুন, আমরা পরিবর্তিত হই, দেশকে পরিবর্তন করি, প্রধানমন্ত্রীর নেতৃত্বে আগামী প্রজন্মের জন্য একটি উন্নত বাংলাদেশ গড়ে তুলি। আইজিপি তার বক্তব্যের শুরুতে করোনায় দায়িত্ব পালনকালে জীবন উৎসর্গকারী ৪৬ পুলিশ সদস্যের প্রতি গভীর শ্রদ্ধা নিবেদন করেন। তিনি তাদের পরিবারের সদস্যদের প্রতি আন্তরিক সমবেদনাও জানান। আইজিপি এসব পরিবারের অংশ হিসেবে সুখে-দুঃখে তাদের সাথে থাকার দৃঢ় অঙ্গীকার পুনর্ব্যক্ত করেন।

বিএনপি নেতারা আইসোলেশনে থেকে সরকারের দোষ ধরে – তথ্যমন্ত্রী

ঢাকা অফিস ॥ আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক ও তথ্যমন্ত্রী ড. হাছান মাহমুদ বলেছেন, বিএনপির অনেক নেতা আছে, যারা ঘরের মধ্যে আইসোলেশনে থেকে শুধু প্রেস ব্রিফিং করে, আর সরকারের দোষ ধরে। জনগণের সহায়তায় তারা এগিয়ে আসেনি। সারাদেশে আওয়ামী লীগের নেতাকর্মী এবং কিছু স্বেচ্ছাসেবী সংগঠনের কর্মীরাই আছে মানুষের পাশে। তিনি বলেন, যারা ঘরে বসে বসে শুধু সমালোচনা করছে, তারা কিন্তু ঘর থেকে বের হচ্ছে না। পক্ষান্তরে আওয়ামী লীগ ও সরকারের কেউ কিন্তু বসে নেই। আক্রান্ত হলে কী হতে পারে সেটিও আমি জানি, তাই আমি নিজেও বসে নেই। সব প্রস্তুতি নিয়েই কিন্তু মাঠে কাজ করছি। এই সময়ে দেশের মানুষ যখন আক্রান্ত, তখন হাত গুটিয়ে বসে থাকার কোনো কারণ নেই। গতকাল শনিবার চট্টগ্রামের রাঙ্গুনিয়া উপজেলা অডিটরিয়ামে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের জন্য চিকিৎসা সরঞ্জামাদি প্রদান ও বন্যহাতির আক্রমণে মৃত ব্যক্তির পরিবারকে সরকারের আর্থিক অনুদানের চেক বিতরণ অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে মন্ত্রী এসব কথা বলেন। উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মো. মাসুদুর রহমানের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি ছিলেন উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান মো. শফিকুল ইসলাম, সহকারী পুলিশ সুপার আবুল কালাম আজাদ, বিভাগীয় বন কর্মকর্তা আবু নাছের মোহাম্মদ ইয়াছিন নেওয়াজ, উপজেলা স্বাস্থ্য কর্মকর্তা রেহানুল ইসলাম, উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ইঞ্জিনিয়ার শামসুল আলম তালুকদার, চেয়ারম্যান ইদ্রিছ আজগর, মুজিবুল হক হিরু, উপজেলা আওয়ামী লীগের দপ্তর সম্পাদক আবু তাহের প্রমুখ। অনুষ্ঠান শেষে তথ্যমন্ত্রী রাঙ্গুনিয়া উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স পরিদর্শন করে চিকিৎসা ব্যবস্থার খোঁজ নেন। এ সময় তিনি হাসপাতালের চিকিৎসা ব্যবস্থার আরও উন্নয়ন ও আধুনিকায়নকল্পে নানা উদ্যোগের কথা জানান। দলীয় নেতাকর্মীদের জনগণের পাশে থাকার অনুরোধ জানিয়ে ড. হাছান মাহমুদ বলেন, প্রধানমন্ত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনা নির্দেশ দিয়েছেন আওয়ামী লীগের নেতাকর্মীদের জনগণের পাশে থাকার জন্য। আমরা নির্দেশনা মেনে জনগণের পাশে আছি এবং ভবিষ্যতেও থাকবো। সেই কারণে আমাদের দলের বহু নেতা করোনায় আক্রান্ত হয়েছে। অনেক নেতা মৃত্যুবরণ করেছে। মৃত্যু যেকোনো সময় হতে পারে, তাই বলে জনগণের এই দুর্দশার সময় বসে থাকবো সেটা হতে পারে না। ড. হাছান মাহমুদ বলেন, করোনা ভাইরাসের মহামারী শুরুর পর থেকে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা দেশের মানুষকে করোনা থেকে রক্ষা করার জন্য প্রাণান্ত চেষ্টা করে যাচ্ছেন। মানুষকে সুরক্ষা দেওয়ার জন্য, যাতে খাদ্যের সংকট না হয়, গরিব মানুষের যাতে কোনো অনুবিধা না হয় সেজন্য নানাভাবে তিনি দিবানিশি কাজ করে যাচ্ছেন। ক্রমান্বয়ে দেশে করোনা ভাইরাস মোকাবেলার সামর্থ এবং সক্ষমতাও বেড়েছে। আজকে তিন মাসের বেশি দুর্যোগে বাংলাদেশে আল্লাহর রহমতে খাদ্যের অভাব হয়নি। খাদ্যের অভাবে কোনো মানুষ মৃত্যুবরণ করেনি। খাদ্যের জন্য কোনো জায়গায় হাহাকার নাই। তিনি বলেন, রাঙ্গুনিয়ার ৬০ হাজারের বেশি পরিবারকে খাদ্য সহায়তা দেওয়া হয়েছে। এখনো সেই ত্রাণ কার্যক্রম চলমান আছে। এর বাইরে আমাদের পারিবারিক প্রতিষ্ঠান এনএনকে ফাউন্ডেশনের মাধ্যমেও হাজার হাজার মানুষকে ত্রাণ দেওয়া হয়েছে। যতদিন এই পরিস্থিতি থাকবে, সরকার জনগণের পাশে আছে এবং থাকবে। তথ্যমন্ত্রী বলেন, করোনা ভাইরাসে মৃত্যুর হার পৃথিবীতে সর্বনিম্ন যে কয়টি দেশে আছে তৎমধ্যে বাংলাদেশ অন্যতম। বাংলাদেশে এখন করোনা ভাইরাসে মৃত্যুর হার ১ দশমিক ২৫ শতাংশ। ভারতে সেটি ৩ শতাংশের বেশি, পাকিস্তানে ২ শতাংশের বেশি। ইউরোপ আমেরিকার দেশগুলোতে ৫ থেকে ১৬ শতাংশ। প্রধানমন্ত্রী সবাইকে নিয়ে অত্যন্ত দক্ষতার সঙ্গে করোনা ভাইরাস মোকাবেলা করছেন বিধায় আমাদের দেশে মৃত্যুর হার অনেক দেশের চেয়ে কম। ড. হাছান মাহমুদ বলেন, রাঙ্গুনিয়া স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে যাতে করোনা রোগীদের সঠিক ভাবে চিকিৎসা দেওয়া সম্ভব হয় সেই লক্ষ্য নিয়ে কিছু কাজ হাতে নিয়েছি। ইতোমধ্যে সেখানে আইসোলেশন সেন্টার করা হয়েছে। আরো শয্যা বাড়িয়ে অক্সিজেন সিলিন্ডারসহ প্রয়োজনীয় স্বাস্থ্য সুরক্ষা সরঞ্জামের ব্যবস্থা করে সেটিকে শীততাপ নিয়ন্ত্রিতসহ আধুনিকায়ন করা হবে। তিনি বলেন, এখন আমরা উপজেলা পর্যায়েও চিকিৎসা দেওয়ার ব্যবস্থা করছি। চট্টগ্রামে করোনা রোগীদের চিকিৎসা দেওয়ার ক্ষেত্রে যেসব অসুবিধাগুলো ছিল তৎমধ্যে অনেক অসুবিধা ইতোমধ্যে দূর করা হয়েছে। কিছুদিনের মধ্যে ব্যবস্থা আরো ভালো হবে। আগের সংকট ও হা-হুতাশ অনেকটা কেটে গেছে। নতুন ভাবে স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সগুলোকে ঢেলে সাজানো হচ্ছে, সেগুলোতে যাতে করোনা পরবর্তী স্বাভাবিক সময়েও ভালো চিকিৎসা দেওয়া যায় সেই লক্ষ্যে স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের অধীনে দেশের উপজেলা পর্যায় পর্যন্ত সমস্ত স্বাস্থ্যসেবাকে ঢেলে সাজানোর কর্মসূচি সরকার হাতে নিয়েছে। সবাইকে স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলার অনুরোধ জানিয়ে ড. হাছান মাহমুদ বলেন, রাঙ্গুনিয়ায়ও অনেক করোনা আক্রান্ত রোগী শনাক্ত হয়েছে। আমাদের মনে রাখতে হবে আমার সুরক্ষা আমার হাতে। আমি যদি সচেতন না হই সরকার কিংবা চিকিৎসকসহ অন্য কেউ আমাকে সুরক্ষিত করতে পারবে না। সেজন্য আমার সুরক্ষা আমার হাতে এটি মাথায় রেখেই আমাদের করোনা ভাইরাসের সময় জীবন এবং কর্মকা- পরিচালনা করতে হবে। অসচেতন থাকলে যে কেউ যেকোনো সময় আক্রান্ত হতে পারে।

কারাগারগুলোতে বন্দি ধারণের আর ঠাঁই নেই – ফখরুল

ঢাকা অফিস ॥ ঢাকার পল্লবী থানা জাসাসের সাবেক সভাপতি ও ঢাকা মহানগর উত্তর বিএনপি নেতা ছোটন বিশ্বাসকে গত শুক্রবার ভোলার বোরহানউদ্দিন উপজেলার নিজ বাড়ি থেকে গ্রেফতার করার ঘটনার তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানিয়েছেন বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর। তিনি বলেন, বিরোধী নেতাকর্মীদের গ্রেফতার করে কারাগারগুলো ভরে ফেলা হয়েছে। কারাগারগুলোতে এখন বন্দি ধারণের আর ঠাঁই নেই। গতকাল শনিবার গণমাধ্যমে পাঠানো এক বিবৃতিতে তিনি এসব কথা বলেন। বিএনপি মহাসচিব বলেন, প্রতিহিংসার বশবর্তী হয়ে বর্তমান সরকার বিএনপিসহ দেশের বিরোধী দলগুলো নিশ্চিহ্ন করে দেশকে বিরাজনীতিকরণের ঘৃণ্য উদ্দেশ্য সাধনে এখন এতটাই বেপরোয়া হয়ে উঠেছে যে, গুম, খুন, অপহরণের পাশাপাশি বিরোধী নেতাকর্মীদের গ্রেফতার করে মিথ্যা মামলা দিয়ে দেশের কারাগারগুলো ভরে ফেলেছে। কারাগারগুলোতে এখন বন্দি ধারণের আর ঠাঁই নেই। বর্তমানে করোনা ভাইরাসের দুর্যোগময় সময়ে বিএনপি নেতাকর্মীরা যখন গরিব ও দুস্থ মানুষদের সাহায্যে এগিয়ে এসেছে তখন তাদের গ্রেফতার করে কারান্তরীণ করা সরকারের অশুভ ইচ্ছারই বহিঃপ্রকাশ। তিনি বলেন, এসব অপকর্মের মূল লক্ষ্য একটাই- ক্ষমতাকে চিরদিনের জন্য পাকাপোক্ত করা। কিন্তু সরকার এসব কুকর্ম করে ক্ষমতা কুক্ষিগত রাখতে পারবে না। কারণ জনগণের পিঠ এখন দেয়ালে ঠেকে গেছে। ফ্যাসিবাদী শাসনের বিরুদ্ধে জনগণ এখন আরও বেশি ঐক্যবদ্ধ। রাজনৈতিক প্রতিহিংসার শিকার বলেই ছোটন বিশ্বাসকে গ্রেফতার করা হয়েছে। আমি তাকে গ্রেফতারের ঘটনার তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানাচ্ছি এবং অবিলম্বে তার বিরুদ্ধে দায়ের করা রাজনৈতিক উদ্দেশ্যপ্রণোদিত মামলা প্রত্যাহার করে নিঃশর্ত মুক্তি দেওয়ার জোর দাবি জানাচ্ছি।