সব বিধি মানছে না গণপরিবহনগুলা, সংক্রমণের উচ্চ ঝুঁকিতে যাত্রীরা

ঢাকা অফিস ॥ শুধু গাড়ির আসনে শারীরিক দূরত্ব বজায় রাখা ছাড়া অন্য কোনো স্বাস্থ্যবিধি মানছে না রাজধানীর গণপরিবহনগুলো। ফলে করোনা ভাইরাস সংক্রমণের উচ্চ ঝুঁকিতে রয়েছেন গণপরিবহনের যাত্রীরা। আবার এ থেকে ছড়াতে পারে সর্বত্র। গতকাল বুধবার সকালে রাজধানী ঘুরে দেখা গেছে, বাসে ওঠার সময় যাত্রীর তাপমাত্রা পরীক্ষা করার কথা থাকলেও বেশির ভাগ গাড়িই তা করছে না। বাসে ওঠার সময় জীবাণুনাশক স্প্রেও করা হচ্ছে না। এ ছাড়া বাসের হেলপার প্রবেশপথে দাঁড়িয়ে থেকে গায়ে হাত দিয়ে দিয়ে যাত্রী তুলছেন। এতে উচ্চ ঝুঁকি রয়েছে করোনা ভাইরাস সংক্রমণ বাড়ার। যাত্রীরা বলছেন, বাসের হেলপার প্রবেশপথে না দাঁড়িয়ে দরজার সামনে প্রথম সিটে বসতে হবে। সেখানে বসে ওঠার সময় যাত্রীর তাপমাত্রা পরীক্ষা করলে করোনার ঝুঁকি কমবে। শারীরিক দূরত্বও তৈরি হবে। কিন্তু হেলপার তো প্রতিদিন অসংখ্য মানুষকে স্পর্শ করছেন। এভাবে চললে গণপরিবহনের মাধ্যমেই করোনার ব্যাপক বিস্তার ঘটবে। রাজধানী ঘুরে দেখা যায়, অধিকাংশ গণপরিবহনেই তাপমাত্রা পরীক্ষার থার্মাল স্ক্যানার নেই। ওঠার সময় যাত্রীদের স্প্রে করারও কোনো ব্যবস্থা নেই। যদিও সরকার গণপরিবহনে স্বাস্থ্যবিধিতে সেসব শর্ত দিয়েছিল। কিন্তু এক আসন ফাঁকা রেখে বসা ছাড়া অন্য কোনো স্বাস্থ্যবিধি মানছে না পরিবহনগুলো। অবশ্য কিছুকিছু পরিবহনে দেখা গেছে, হ্যান্ড স্যানিটাইজার ব্যবহারসহ কিছু বিধি মানতে। নূর, বিহঙ্গ, রাইদা, আবাবিল, তুরাগ, বলাকা, প্রচেষ্টা, ৯নং মতিঝিল ও এয়ারপোর্ট বঙ্গবন্ধু অ্যাভিনিউ পরিবহনে দেখা যায়, শুধু আসনে বসার সময় শারীরিক দূরত্ব মানা ছাড়া অন্য কোনো স্বাস্থ্যবিধির বালাই নেই। তাড়াহুড়ো করে যাত্রী তোলার সময় গায়ে হাত দিচ্ছেন হেলপার। তবে অধিকাংশ যাত্রী মাস্ক পরেই যাত্রা করছেন। উইনার পরিবহনের সহকারী মাখন মিয়া বলেন, বাসে যাত্রী তোলার সময় থার্মাল স্ক্যানার দিয়ে পরীক্ষা করে তুললে করোনা ভাইরাস ঝুঁকি কমতো। কিন্তু সেই ব্যবস্থা আমাদের নেই। এছাড়াও যাত্রী তোলার সময় সবাই তাড়াহুড়ো করেন। পরীক্ষা করে তোলার সময় কই! প্রবেশ পথে দাঁড়িয়ে গায়ে হাত দিয়ে যাত্রী তুললে করোনার ঝুঁকি আপনারও রয়েছে, সামনের আসনে বসে যাত্রী তুলেন না কেন, জানতে চাইলে বসুমতি পরিবহনের সহকারী রাজীব বলেন, আসলে এটা আমরা চিন্তা করিনি। এ ছাড়া এমনিতেই অর্ধেক যাত্রী নিয়ে আমরা চলাচল করছি। এরমধ্যে এক আসন আমি দখল করে বসলে কেমন হয়। কিন্তু স্বাস্থ্যবিধি না মানলে তো মৃত্যু ঝুঁকি রয়েছে জানতে চাইলে তিনি বলেন, এতকিছু চিন্তা করে লাভ নেই। আকিক পরিবহনের যাত্রী কৌশিক বলেন, বাসে পুরোপুরি স্বাস্থ্যবিধি মানা হচ্ছে না। করোনার সবচেয়ে বড় ঝুঁকি হলো, হেলপার দরজায় দাঁড়িয়ে থেকে যাত্রী তুলছেন। হেলপার সামনের আসনে বসে যাত্রী তুললে সেই ঝুঁকিটা অনেক কমে যাবে। পল্লবী পরিবহনের যাত্রী নায়লা বলেন, গণপরিবহন চলাচলে সরকারকে তদারকি করা উচিত। এরা অনেক কিছুই মানছে না।

ঝিনাইদহে আগুনে পুড়ে ৪ টি দোকান ভষ্মিভুত

ঝিনাইদহ প্রতিনিধি ॥ ঝিনাইদহ শহরের আরাপপুরে আগুনে পুড়ে গেছে ৪ টি ব্যবসায় প্রতিষ্ঠান। বুধবার সকালে এ ঘটনা ঘটে। ঝিনাইদহ ফায়ার সার্ভিসের সাব অফিসার আব্দুর রউফ মোল্লা জানান, সকালে বৈদ্যুতিক শর্ট-সার্কিট থেকে টায়ার ব্যবসায়ী আলেক মিয়ার দোকানে আগুনের সুত্রপাত হয়। মুহুর্তে তা আশপাশের দোকানে ছড়িয়ে পড়ে। খবর পেয়ে ঝিনাইদহ ফায়ার সার্ভিসের ২ টি ইউনিট প্রায় ঘন্টার চেষ্টায় আগুন নিয়ন্ত্রনে আনে। এরই মধ্যে পুড়ে যায় আলেক মিয়া, পাকরুল ইসলাম, ফরিদ হোসেন ও শওকত আলীর দোকান। এতে প্রায় ৫ লাখ টাকার ক্ষতি হয়েছে বলে জানিয়েছে ব্যবসায়ীরা।

গাংনীতে ৬ মামলার আসামী লাল্টু  আটক

গাংনী প্রতিনিধি  ॥ মেহেরপুর জেলার গাংনীতে একটি  হত্যা মামলাসহ ৬টি মামলার আসামী লাল্টু হোসেন (৪২)  নামের একজনকে আটক করেছে পুলিশ। আটককৃত লাল্টু গাংনী উপজেলার সাহেবনগর গ্রামের বাসিন্দা ও যুবক ডাবলু হত্যা মামলার পলাতক আসামী। গতকাল বুধবার দুপুর ২টার দিকে গাংনী থানার ওসি (তদন্ত) সাজেদুল ইসলামের নেতৃত্ব পুলিশের একটিদল কুষ্টিয়া জেলার প্রাগপুর এলাকায় অভিযান চালিয়ে লাল্টুকে আটক করেন। গাংনী থানা সূত্র জানায় গত ১৬ মে শনিবার বিকেলে গাংনী উপজেলার কাজীপুর-সাহেবনগর গ্রামের মধ্যেবর্তি গোলাম বাজারের অদূরে একটি লিচু বাগান দখল নিয়ে দু’পক্ষের মধ্যে সংঘর্ষের ঘটনায় উভয়পক্ষের ২জন ঘটনাস্থলেই নিহত হয়। এ সময় আহত  হয় দু’পক্ষের আরো ২জন। নিহতরা হলেন-কাজীপুর গ্রামের খবির উদ্দীনের ছেলে ইসমত কবির ডাবলু ও অন্য পক্ষের নিহত হলেন-সাহেবনগর গ্রামের সেকেন্দার আলীর ছেলে সানাউল্লাহ। এসময় আহত হন ডাবলুর বাবা খবির উদ্দীনসহ অন্য পক্ষের আরো একজন। ওই ঘটনায় পাল্টা-পাল্টি মামলা করা হয়। ঘটনার পর-পরই নিহত ডাবলুর মা ইসলামা খাতুন বাদী হয়ে কাজীপুর ইউনিয়ন পরিষদের সদস্য হাবিবুর রহমান হাবিবকে ১নং ও লাল্টু  হোসেনকে ২নং আসামী করে ১০জনসহ অজ্ঞাতনামাদের বিরুদ্ধে গাংনী থানায় একটি হত্যা মামলা দায়ের করেন। যার  মামলা নং- ১৬ তাং- ১৭/০৫/২০। একই ঘটনায় প্রতিপক্ষ সানাউল্লাহ নিহত হওয়ায় তার  স্ত্রী বাদী হয়ে খবির উদ্দীনসহ আরো বেশ কয়েকজনের নামে গাংনী থানায় একটি হত্যা মামলা করেন। যার মামলা নং- ১৭ ,তাং ১৭/০৫/২০ইং। বুধবার ডাবলু হত্যা মামলার ২নং আসামী লাল্টু হোসেনকে কুষ্টিয়ার জেলার প্রাগপুর এলাকায় অভিযান চালিয়ে আটক করা হয়। আটককৃত লাল্টুর নামে ডাবলু হত্যাসহ চাঁদাবাজি, ডাকাতির অভিযোগে গাংনী ও কুষ্টিয়ার মিরপুর থানায় ৬টি মামলা রয়েছে। গাংনী থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) ওবাইদুর রহমান জানান হত্যার ঘটনার পর থেকে লাল্টু পলাতক ছিল। তাকে আটক করে জিজ্ঞাসাবাদ চলছে। মেহেরপুর আদালতে পাঠানো হবে।

লিবিয়ায় ২৬ বাংলাদেশিকে হত্যার ‘মূল হোতা’ ড্রোন হামলায় নিহত

ঢাকা অফিস ॥ লিবিয়ায় ২৬ বাংলাদেশিসহ ৩০ জনকে নির্বিচারে গুলি করে হত্যায় ‘মূল হোতা’ বলে অভিযুক্ত মিলিশিয়া নেতা খালেদ আল-মিশাই দেশটির বিমান বাহিনীর ড্রোন হামলায় নিহত হয়েছেন। মঙ্গলবার রাজধানী ত্রিপোলির ৮০ কিলোমিটার দক্ষিণে গারিয়ান শহরের কাছে ওই হামলায় তার মৃত্যু হয়। লিবিয়ার সংবাদমাধ্যম এ খবর দিয়েছে। সংবাদমাধ্যম বলছে, খালেদ আল-মিশাই ছিলেন লিবিয়ার একাংশের নিয়ন্ত্রক বিদ্রোহী জেনারেল খলিফা হাফতারের অনুসারী। রাজধানী ত্রিপোলিসহ অনেক এলাকা জাতিসংঘ-স্বীকৃত জাতীয় ঐকমত্যের সরকারের (জিএনএ) নিয়ন্ত্রণে থাকলেও বেনগাজীসহ অনেক তেলসমৃদ্ধ এলাকা খলিফা হাফতারের বাহিনীর দখলে রয়েছে। গত ২৮ মে ত্রিপোলি থেকে দূরে মিজদা শহরে ২৬ বাংলাদেশিসহ ৩০ জনকে গুলি করে হত্যা করে এক মানবপাচারকারীর সহযোগী ও স্বজনরা। এতে আহত হন আরও ১১ জন বাংলাদেশি। বাংলাদেশিসহ ওই অভিবাসীদের মিজদা শহরের একটি জায়গায় মুক্তিপণের জন্য জিম্মি রেখেছিল মানবপাচারকারী চক্র। এ নিয়ে একপর্যায়ে ওই চক্রের সঙ্গে মারামারি হয় অভিবাসী শ্রমিকদের। এতে এক মানবপাচারকারী নিহত হয়। তারই প্রতিশোধ হিসেবে সেই মানবপাচারকারীর লোকজন এ হত্যাকান্ড ঘটায়। এ ঘটনায় অস্ত্র সরবরাহ ও নেতৃত্বের জন্য খলিফা হাফতারের লোকজনকে অভিযুক্ত করে আসছে লিবিয়ার জিএনএ সরকার। ঘটনাটির পরই লিবিয়ার স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয় এক বিবৃতি দিয়ে জানায়, তারা এর তদন্ত শুরু করেছে। পরে লিবিয়ার সরকারের পক্ষ থেকে আরেকটি বিবৃতিতে বলা হয়, হত্যাকারীদের বিচারের আওতায় আনতে প্রতিজ্ঞাবদ্ধ লিবিয়া। এতে নিহতদের পরিবার ও বাংলাদেশ সরকারের প্রতি গভীর সমবেদনাও জানানো হয়।

আইটি খাতে আয়ারল্যান্ডের ভিসা সহজ করার অনুরোধ পররাষ্ট্রমন্ত্রীর

ঢাকা অফিস ॥ পররাষ্ট্রমন্ত্রী ড. এ. কে. আবদুল মোমেন আইটি বিষয়ে দক্ষ প্রায় ৬ লাখ নাগরিকসহ সকল বাংলাদেশিদের জন্য আয়ারল্যান্ডের ভিসা প্রক্রিয়া সহজীকরণের অনুরোধ করেছেন। ড. মোমেন গত মঙ্গলবার আয়ারল্যান্ডের উপ-প্রধানমন্ত্রী ও পররাষ্ট্রমন্ত্রী সিমন কভেনের সাথে ফোনে আলাপকালে এ অনুরোধ করেন। পররাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, বাংলাদেশের আইটি খাতে দক্ষ প্রায় ৬ লাখ জনগোষ্ঠীকে আয়ারল্যান্ড সে দেশের উন্নয়নে কাজে লাগাতে পারবে। এ সময় তিনি তৈরি পোশাক খাতে বাংলাদেশের ক্রয়াদেশ বাতিল না করার জন্য আয়ারল্যান্ডের কোম্পানিগুলোকে অনুরোধ করেন। বাংলাদেশের তৈরি পোশাক খাতে বিভিন্ন দেশের ক্রয়াদেশ বাতিলের বিষয়ে উদ্বেগ প্রকাশ করেন ড. মোমেন। তিনি বলেন,বিদেশী ক্রেতাদের ক্রয়াদেশ বাতিলের কারণে বাংলাদেশে এ খাতে কর্মরত প্রায় ৪০ লাখ শ্রমিক অনিশ্চয়তার মধ্যে পড়েছে, যাদের অধিকাংশ মহিলা। এ বিষয়ে বিদেশী ক্রেতাদের দায়িত্বশীল আচরণের অনুরোধ করেন পররাষ্ট্রমন্ত্রী। এ সময় আয়ারল্যান্ডের পররাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, বাংলাদেশ সম্পূর্ণ মানবিক কারণে মিয়ানমার থেকে বাস্তচ্যুত ১১ লাখ রোহিঙ্গা জনগোষ্ঠীকে আশ্রয় দিয়ে অসাধারণ উদারতা দেখিয়েছে। তিনি উল্লেখ করেন, বাংলাদেশে সাময়িকভাবে আশ্রয় দেওয়া এ রোহিঙ্গাদের সংখ্যা আয়ারল্যান্ডের জনগোষ্ঠীর প্রায় এক চতুর্থাংশ। এ বিষয়ে সহযোগিতার জন্য আয়ারল্যান্ডের পররাষ্ট্রমন্ত্রীকে ড. মোমেন ধন্যবাদ জানান। মিয়ানমার রোহিঙ্গাকে প্রত্যাবাসনের ক্ষেত্রে কোন অগ্রগতি না হওয়ায় ড. মোমেন গভীর উদ্বেগ প্রকাশ করেন। তিনি উল্লেখ করেন, গত তিন বছরে একজন রোহিঙ্গাকেও মিয়ানমার ফেরত নেয়নি। বাংলাদেশের পররাষ্ট্রমন্ত্রী রোহিঙ্গাদের ফেরত নেওয়ার বিষয়ে মিয়ানমারের প্রতি চাপ সৃষ্টির জন্য ইউরোপীয় ইউনিয়নের প্রতি অনুরোধ করেন। ড. মোমেন উল্লেখ করেন, ইউরোপীয় ইউনিয়নসহ বিশ্বের অন্যান্য দেশের উচিত রোহিঙ্গাদের দায়িত্ব নেয়া। তিনি আশাবাদ ব্যক্ত করেন, আয়ারল্যান্ড জাতিসংঘের নিরাপত্তা পরিষদের অস্থায়ী সদস্য নির্বাচিত হলে রোহিঙ্গা ইস্যুতে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখতে পারবে। আয়ারল্যান্ডের পররাষ্ট্রমন্ত্রী এ বিষয়ে তাদের সহযোগিতা অব্যাহত রাখার প্রতিশ্র“তি ব্যক্ত করেন। সিমন কভেনে জাতিসংঘের শান্তিরক্ষী কার্যক্রমে বাংলাদেশের নেতৃস্থানীয় ভূমিকার প্রশংসা করেন। তিনি এ বিষয়ে বাংলাদেশের সাথে কাজ করার আগ্রহ প্রকাশ করেন।

স্বাস্থ্যবিধি না মানায় আলমডাঙ্গায় ভ্রাম্যমান আদালতে জরিমানা

আলমডাঙ্গা অফিস  ॥ আলমডাঙ্গায় ভ্রাম্যমান আদালতে ৪ জনকে স্বাস্থ্যবিধি না মানা ও মুখে মাস্ক না থাকায় এবং জুয়া খেলার অপরাধে ৩৩ হাজার ৫শত টাকা জরিমানা করেছে। গতকাল বুধবার আলমডাঙ্গা উপজেলা নির্বাহী অফিসার মোঃ লিটন আলী নির্বাহী ম্যাজিষ্ট্রেট হিসেবে এ ভ্রাম্যমান আদালত পরিচালনা করেন। জানাগেছে, উপজেলার গাংনী ইউনিয়নের ফাঁড়ী ইনচার্জ এসআই শাহিনুর রহমান গাংনী আসমানখালী বাজারের আজিবর রহমানের ছেলে সাইফুল ইসলাম (৪৫), নান্দবারের মৃত বড় হ্যারো মন্ডলের ছেলে মিন্টু মিয়া (৪৬), আসমানখালি গোডাউন পাড়ার হাসান আলীর ছেলে মাহমুদ হোসেন (৩৭), নান্দবারের আব্দুল মান্নানের ছেলে মিজানুর রহমান (৩৮), ও নান্দবারের মৃত সিদ্দিকুর রহমানের ছেলে আকবর আলী (৩৫) কে জুয়া খেলার সময় হাতেনাতে ধরে আটক করে। এ সময় তাদের কাছে তাস ও নগদ টাকা জুয়ার বোর্ড থেকে উদ্ধার করে। পরে উপজেলা নির্বাহী অফিসারকে খবর দিলে উপজেলা নির্বাহী অফিসার মোঃ লিটন আলী নির্বাহী ম্যাজিষ্ট্রেট হিসেবে ভ্রাম্যমান আদালত বসিয়ে তাদের প্রত্যেককে ৬হাজার ৬শত টাকা করে মোট ৩৩ হাজার টাকা জরিমানা করেছে। এ ছাড়াও বেলা সাড়ে ১০ দিকে আলতায়েবা  মোড়ে সরকারি স্বাস্থ্যবিধি না মনে বিনা মাস্ক ব্যবহার করে খালি মুখে বাজারে আসার অপরাধে এরশাদপুর গ্রামের সিরাজুল ইসলামকে ৫শত টাকা জরিমানা করেন এবং ১৫/২০ জনকে মাস্ক না পরার অপরাধে কাউকে ২০ টি, কাউকে ১৫ টি করে মাস্ক কিনে গরীব ভ্যান চালক পথচারিদের মধ্যে বিতরণ করেন। এ সময় আলমডাঙ্গা বনিক সমিতির সাধারন সম্পাদক আলহাজ্ব মীর শফিকুল ইসলাম ও থানা পুলিশ উপস্থিত ছিলেন।

 

দেশে ২৪৪ জন সংবাদকর্মী করোনায় আক্রান্ত

ঢাকা অফিস ॥ প্রাণঘাতী করোনাভাইরাসে এখন পর্যন্ত ২৪৪ জন গণমাধ্যমকর্মী আক্রান্ত হয়েছেন। এর মধ্যে আক্রান্ত তিনজন মারা গেছেন। আর উপসর্গ নিয়ে মারা গেছেন তিনজন। অন্যদিকে, সুস্থ হয়েছেন ৭৩ জন সংবাদকর্মী। খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, গতকাল বুধবার পর্যন্ত ৭৯টি গণমাধ্যমের কর্মী আক্রান্ত হয়েছেন। এর মধ্যে ৩৯টি বিভিন্ন পত্রিকা, বিটিভি, বেসরকারি টেলিভিশন ২২টি, নিউজ পোর্টাল ১২টি, ৪টি রেডিও এবং একটি বার্তা সংস্থার সংবাদকর্মী আক্রান্ত হয়েছেন। করোনা আক্রান্ত সংবাদকর্মীর মধ্যে ২১৩ জন ঢাকায় বসবাস করেন। আর ঢাকার বাইরে ৩১ জন। তবে আক্রান্তদের সবাই রিপোর্টার নয়। কেউ কেউ ফটোসাংবাদিক, নিউজরুম এডিটর, অনুষ্ঠান বিভাগে কর্মরত, নিউজ প্রেজেন্টার, মেকাপম্যানসহ বিভিন্ন বিভাগে কর্মরত। এদিকে, করোনায় গত ২৮ এপ্রিল দৈনিক সময়ের আলোর সিটি এডিটর, চিফ রিপোর্টার এবং জ্যেষ্ঠ সাংবাদিক হুমায়ুন কবির খোকনের মৃত্যু হয়। এরপর মারা যান মুক্তিযুদ্ধের অন্যতম সংগঠক ও সিনিয়র সাংবাদিক সুমন মাহমুদ। তার বয়স হয়েছিল ৭০ বছর। ৩১ মে করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে মৃত্যুবরণ করেছেন বেসরকারি টিভি চ্যানেল এনটিভির অনুষ্ঠান বিভাগের প্রধান ও দেশের স্বনামধন্য আবৃত্তিকার মোস্তফা কামাল সৈয়দ। তার বয়স হয়েছিল ৭৮ বছর। করোনা উপসর্গ নিয়ে মারা যাওয়া তিন সাংবাদিক হলেন- দৈনিক ভোরের কাগজের স্টাফ রিপোর্টার, বাংলাদেশ ক্রাইম রিপোর্টার্স অ্যাসোসিয়েশনের (ক্র্যাব) সাবেক ক্রীড়া ও সাংস্কৃতিক সম্পাদক আসলাম রহমান, দৈনিক সময়ের আলোর সিনিয়র সাব-এডিটর মাহমুদুল হাকিম অপু এবং দৈনিক বাংলাদেশের খবরের ফটোগ্রাফার এম মিজানুর রহমান খান।

ঝিনাইদহে সরকারি নির্দেশনা মেনে বাস চলাচল নিশ্চিত করতে পুলিশের অভিযান

ঝিনাইদহ প্রতিনিধি ॥ ঝিনাইদহে সরকারি নির্দেশনা মেনে বাস চলাচল নিশ্চিত করতে চেকপোষ্ট বসিয়ে তল্লাশী করছে পুলিশ। বুধবার সকালে শহরের কেন্দ্রীয় বাসটার্মিনাল, আরাপপুর মোড়, চুয়াডাঙ্গা বাসস্ট্যান্ড ও হামদহসহ ৬ টি রুটে তল্লাশী চালানো হচ্ছে। সরকার নির্ধারিত হারে ভাড়া নেয়া হচ্ছে কিনা তা যাত্রীদের সাথে কথা বলে নিশ্চিত করা হয়। এছাড়াও স্বাস্থ্য বিধি মেনে বাসে যাত্রী উঠানো হয়েছে কিনা তা পরীক্ষা করা হয়। স্থানীয় ও দুরপাল্লার চলাচলকারী বাস থামিয়ে যাত্রী যাচাই করা হয়। এতে নেতৃত্ব দেন পুলিশ সুপার হাসানুজ্জামান। এছাড়াও কেন্দ্রীয় বাস টার্মিনাল এলাকার বাসকাউন্টারে কর্মরতদের অতিরিক্ত ভাড়া না নেওয়া ও স্বাস্থ্যবিধি মেনে কাজ করার পরামর্শও দেওয়া হয়। অভিযানে অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (সদর সার্কেল) আবুল বাশার, সদর থানার ওসি মিজানুর রহমান, ট্রাফিক ইন্সপেক্টর সালাহউদ্দিন, গৌরাঙ্গ পাল, জেলা বাসমিনিবাস মালিক সমিতির সাবেক সভাপতি রোকনুজ্জামান রানুসহ অন্যান্যরা উপস্থিত ছিলেন।

উপজেলা ও পৌরসভায় টিসিবির পণ্য বিক্রির ব্যবস্থা নেয়ার নির্দেশ

ঢাকা অফিস ॥ করোনা ভাইরাসের কারণে টিসিবির ১০ টাকা দামের চাল ও অন্যান্য পণ্য উপজেলা পর্যায়ে ও পৌর এলাকায় পর্যন্ত সাধারণ মানুষের মধ্যে বিক্রির জন্য প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নিতে বাণিজ্য মন্ত্রণালয়সহ সংশ্লিষ্টদের নির্দেশ দিয়েছেন হাইকোর্ট। এ বিষয়ে আগামী সাত দিনের মধ্যে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেয়ার জন্য প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের মুখ্য সচিব, বাণিজ্য মন্ত্রণালয়ের সচিব ও ট্রেডিং করপোরেশন অব বাংলাদেশের (টিসিবির) চেয়ারম্যানকে বলা হয়েছে। একইসঙ্গে, টিসিবির পণ্য দেশের উপজেলা ও পৌরসভা এলাকায় বিক্রির বিষয়ে কী কী পদক্ষেপ নেয়া হয়েছে তা প্রতিবেদন আকারে জানার জন্য আগামী ১১ জুন জানাতে বলা হয়েছে। আদেশের বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন রিটকারী আইনজীবী হুমায়ুন কবির পল্লব নিজেই। গতকাল বুধবার ভার্চুয়াল পদ্ধতিতে শুনানি নিয়ে হাইকোর্টের বিচারপতি জেবিএম হাসানের বেঞ্চ এই আদেশ দেন। এ বিষয়ে এর আগে গত সোমবার শুনানি শুরু করে আরও বিস্তারিত শুনানির জন্যে গতকাল বুধবার দিন ঠিক করেন আদালত। গতকাল বুধবার শুনানি শেষে এই আদেশ দেন। আদালতে রিটের পক্ষে ভার্চুয়াল শুনানিতে অংশগ্রহণ করেন রিটকারি আইনজীবী ব্যারিস্টার মো. হুমায়ন কবির পল্লব। অন্যদিকে বাণিজ্য মন্ত্রণালয়ের পক্ষে ছিলেন আইনজীবী ব্যারিস্টার তাপস কান্তি বল। রাষ্ট্রপক্ষে শুনানিতে ছিলেন, ডেপুর্টি অ্যার্টনি জেনারেল সমরেন্দ্রনাথ বিশ্বাস। এর আগে জনস্বার্থে গত ১৬ মে হাইকোর্টের সংশ্লিষ্ট বেঞ্চে ই-মেইলের মাধ্যমে ‘ল এ- লাইফ ফাউন্ডেশনের’ পক্ষে সুপ্রিম কোর্টের আইনজীবী ব্যারিস্টার মো. হুমায়ন কবির পল্লব রিটটি দায়ের করেছিলেন। রিটে বিবাদী করা হয় প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের মুখ্য সচিব, বাণিজ্য মন্ত্রণালয়ের সচিব ও ট্রেডিং করপোরেশন অব বাংলাদেশের (টিসিবির) চেয়ারম্যানকে। তারও আগে ৩০ এপ্রিল এ বিষয়ে পদক্ষেপ নেয়ার জন্যে সংশ্লিষ্টদের প্রতি আইনি নোটিশ পাঠানো হয়। নোটিশ পাওয়ার নির্ধারিত কার্যদিবসের মধ্যে এ বিষয়ে সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষ কোনো পদক্ষেপ না নেয়ায় রিটটি দায়ের করেন আইনজীবী।

গাংনীতে গম সংগ্রহের জন্য সফটওয়ারের মাধ্যমে লটারী অনুষ্ঠিত

গাংনী প্রতিনিধি ॥ মেহেরপুরের গাংনী উপজেলা খাদ্যশষ্য সংরক্ষণ ও মনিটরিং কমিটির উদ্যোগে চলতি মৌসুমে আভ্যন্তরীণ আমন গম ক্রয়ের লক্ষ্যে প্রকৃত গম চাষীদের নিকট থেকে গম সংগ্রহের জন্য সফটওয়ারের মাধ্যমে লটারী অনুষ্ঠিত হয়েছ্।ে গতকাল বুধবার বিকেল সাড়ে ৩ টার সময় উপজেলার সম্মেলন কক্ষে লটারী অনুষ্ঠিত হয়। উপজেলার ৯ টি ইউনিয়ন ও ১টি পৌরসভার সর্বমোট ১ হাজার ৮৩৪ জন গম চাষী বাছাইয়ে ডিজিটাল প্রযুক্তির মাধ্যমে লটারী সম্পন্ন করা হয়েছে। উপজেলা নির্বাহী অফিসার ইয়ানুর রহমানের (ভারপ্রাপ্ত) সভাপতিত্বে ড্র অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন- গাংনী উপজেলা কৃষি অফিসার কেএম শাহাবউদ্দীন আহমেদ, গাংনী পৌরসভার মেয়র আশরাফুল ইসলাম, মেহেরপুর জেলা খাদ্য পরিদর্শক রমজান আলী, গাংনী উপজেলা প্রশাসনের সহকারী প্রোগ্রামার আব্দুর রকিব, উপজেলা ওসিএলএসডি মতিয়ার রহমান, গাংনী থানার ওসির প্রতিনিধি আব্দুল হক, গাংনী উপজেলা প্রেসক্লাবের সভাপতি আমিরুল ইসলাম অল্ডাম প্রমুখ।  খাদ্য অফিস সূত্রে জানা গেছে গাংনীতে এ বছর ১ হাজার ৮৪৭ মে.টন গম ক্রয়ের লক্ষ্যমাত্রা ধরা হয়েছে। সে লক্ষ্যে কিছুদিন আগে গম ক্রমের আনুষ্ঠানিক উদ্বোধন করা হয়েছিল। এবং ১৩ মে. টন গম ক্রয় করা হয়েছিল। একদিন পর অজ্ঞাত কারণে গম ক্রয় বন্ধ হয়ে যায়। আবার তালিকা যাচাই বাছাই শেষে গাংনী পৌরসভায়  ১২২ জন , ধানখোলা ইউনিয়নের  ২১২ জন, তেঁতুলবাড়ীয়া ইউনিয়নের ১৯৮ জন, রাইপুর ইউনিয়নের  ১৬৩ জন, কাথুলী ইউনিয়নের ১৯৭ জন, কাজীপুর ইউনিয়নের  ১৮৬ জন, বামন্দী ইউনিয়নের ২০৯ জন, ষোলটাকা ইউনিয়নের  ১৬০ জন, মটমুড়া ইউনিয়নের  ১৯৭ জন এবং সাহারবাটী ইউনিয়নের  ১৬০ জন সর্বমোট ১৮৩৪ জন গম চাষীর লটারী সম্পন্ন হয়।  এ বছর গমের সরকারী মূল্য  নিধারণ করা হয়েছে মনপ্রতি ১১শ’ ২০ টাকা।

গণস্বাস্থ্যের কিটে ত্রটি, পরীক্ষা স্থগিত রাখতে বিএসএমএমইউকে চিঠি

ঢাকা অফিস ॥ গণস্বাস্থ্য কেন্দ্র উদ্ভাবিত কিটের কার্যকারিতা পরীক্ষা চলছে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ে (বিএসএমএমইউ)। তাদের কিটের দুটি অংশ-অ্যান্টিবডি ও অ্যান্টিজেন্ট। তার মধ্যে অ্যান্টিজেন্টের ফলাফল আশানুরূপ আসছে না বিধায় বিএসএমএমইউকে ওই অংশ পরীক্ষা আপাতত স্থগিত রাখার জন্য চিঠি দিয়েছে গণস্বাস্থ্য কেন্দ্র। গত মঙ্গলবার (২ জুন) এই চিঠি দেয়া হয়। গতকাল বুধবার এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন গণস্বাস্থ্য কেন্দ্রের জনসংযোগ কর্মকর্তা মো. ফরহাদ। তিনি বলেন, গণস্বাস্থ্য কিটের যে কার্যকারিতা পরীক্ষা হচ্ছে, তার একটা অংশের পরীক্ষা স্থগিত রাখার জন্য অনুরোধ করা হয়েছে। অ্যান্টিবডি ও অ্যান্টিজেন্ট-এই দুটোর মধ্যে অ্যান্টিজেন্টের ফলাফল একটু কম আসছে। এজন্য একটা অংশের কাজ স্থগতি রাখতে বলা হয়েছে। নতুন করে তা ডেভেলপের পর সেগুলো আবার দেয়া হবে। এ-সংক্রান্ত একটি নোট তুলে ধরে ফরহাদ বলেন, সম্প্রতি জিআর কোভিড-১৯ র‌্যাপিড অ্যান্টিজেন্ট টেস্টে নমুনা লালা যথাযথ প্রক্রিয়ায় সংগ্রহে অসামঞ্জস্যতা থাকায় সঠিক ফলাফল নির্ণয়ে জটিলতা তৈরি হচ্ছে। বেশিরভাগ ক্ষেত্রেই অ্যান্টিজেন্ট শনাক্তকরণের জন্য যথাযথ লালা নমুনায় থাকছে না বা অন্য বস্তুর মিশ্রণ লক্ষণীয়। সম্মিলিত মনিটরিং টিম এ সমস্যাটি চিহ্নিত করেছে। অতএব এই অ্যান্টিজেন্টের সমস্যা থেকে উত্তরণের জন্য ল্যাবে লালা সংগ্রহের পদ্ধতিগত কাজ শুরু হয়েছে, যা যথাশীঘ্র আপনাদেরকে জানাতে পারব বলে আমরা আশা করছি। তিনি আরও বলেন, এজন্য বলা হয়েছে, অ্যান্টিজেন্টের কাজ আপাতত বন্ধ রাখেন আর অ্যান্টিবডির যেটার ভালো ফলাফল এসেছে, সেটার অনুমোদন দেয়ার ব্যবস্থা করে দেন। আবার ডেভেলপ করার পর (অ্যান্টিজেন্ট) তাদের দেয়া হবে। তখন তাদের ধারণা দেয়া হবে, কীভাবে লালা সংগ্রহ করতে হবে অথবা কীভাবে কাজ করলে এর ভালো ফলাফল আসবে।

করোনা ও আম্পান মোকাবেলায় সাহসিকতা ও মানবিক পরিচয়ে যশোর সেনানিবাস

প্রাণঘাতী করোনা এবং সুপার সাইক্লোন আম্পান  মোকাবেলায় নিজেদের পেশাদারিত্ব, সততা ও নিষ্ঠার মাধ্যমে দেশের আপামর মানুষের পাশে থেকে নিরলসভাবে কাজ করে যাচ্ছে বাংলাদেশ সেনাবাহিনীর ৫৫ পদাতিক ডিভিশন। এরই ধারাবাহিকতায় অন্যান্য দিনের মত গতকালও দেশের প্রত্যন্ত অঞ্চলের অসহায় এবং সত্যিকারের দুস্থ মানুষের হাতে খাদ্য সামগ্রী পৌছে  দেয়ার নিরন্তন প্রচেষ্টা অব্যাহত রেখেছে। পাশাপাশি সামাজিক দূরত্ব নিশ্চিতের মাধ্যমে করোনার ভয়াল থাবা  থেকে সাধারণ মানুষকে মুক্ত করতে সেনা সদস্যরা নিয়মিত টহল জোরদার করেছে। গাড়ি থামিয়ে তাদেরকে সচেতনতামূলক পরামর্শ প্রদানসহ নানাবিধ জনসচেতনতামূলক কার্যক্রম অব্যাহত রেখেছে। বিশেষ করে গণপরিবহনগুলো স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলাচল করছে কি না তার উপর জোর নজরদারি রয়েছে। অন্যদিকে ঘুর্ণিঝড় আম্পান মোকাবেলার অংশ হিসেবে উপকূলীয় এলাকায় ক্ষতিগ্রস্ত বেড়িবাঁধ মেরামতের চেষ্টা অব্যাহত রাখার পাশাপাশি শুকনা খাদ্যসামগ্রী, খাবার স্যালাইন, পানি বিশুদ্ধকরণ ট্যাবলেট, ফ্রি চিকিৎসা সেবা প্রদান, ওষুধ বিতরণ এবং ঘরবাড়ী মেরামতের কাজও চলমান রয়েছে। যশোর সেনানিবাস সূত্রে জানা যায়, দেশপ্রেম ও মানবিকতার সঙ্গে সাধারণ মানুষের জন্য এমন প্রাণান্তকর প্রচেষ্টা করোনা এবং আম্পান দুর্যোগ পরিস্থিতি স্বাভাবিক না হওয়া পর্যন্ত চলমান থাকবে। সংবাদ বিজ্ঞপ্তি

করোনায় সৌদি প্রবাসী আলমডাঙ্গার আব্দুল বাকী  চৌধুরী বাবুর মৃত্যু

আলমডাঙ্গা অফিস ॥ চুয়াডাঙ্গা জেলার আলমডাঙ্গা উপজেলার কুমারী গ্রামের রবিউল হক চৌধুরীর বড়  ছেলে ও ডাবু, লাবুর ভাই এবং আলমডাঙ্গা প্রেসক্লাবের সভাপতি খন্দকার শাহ আলম মন্টুর ফুফাতো ভাই  সৌদি প্রবাসী আব্দুল বাকী চৌধুরী বাবু (৫০) করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে ইন্তেকাল করেছেন। গত ২ জুন মঙ্গলবার  বেলা ১২টায় সৌদি আরবের একটি হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় তিনি মৃত্যুবরণ করেন। মৃত্যুকালে তিনি স্ত্রী ও এক কন্যাসহ বহু আত্মীয় স্বজন ও গুনগ্রাহী রেখে গেছেন।  তিনি সেদেশের একটি বেসরকারি প্রতিষ্ঠানে চাকুরীরত ছিলেন। গতকাল মরহুম আব্দুল বাকী চৌধুরীকে জানাযা শেষে সৌদি আরবে দাফন করা হয়েছে। বাবুর করুন মৃত্যুতে শোক প্রকাশ করে সমবেদনা জানিয়েছেন আলমডাঙ্গা উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি ও পৌর মেয়র আলহাজ হাসান কাদির গণু মিয়া, উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ইয়াকুব আলী মাষ্টার, উপজেলা পরিষদের ভাইস চেয়ারম্যান ও উপজেলা ছাত্রলীগের সভাপতি এড. খন্দকার সালমুন আহমেদ ডন, কুমারী ইউনিয়নের সাবেক চেয়ারম্যান ও উপজেলা আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি মজিবর রহমান, উপজেলা আওয়ামী লীগের সহ সভাপতি ও প্রেসক্লাবের সাধারণ সম্পাদক বীর মুক্তিযোদ্ধা খন্দকার হামিদুল ইসলাম আজম, সিনিয়র সহ-সভাপতি আতিয়ার রহমান মুকুল, যুগ্ম সম্পাদক প্রশান্ত বিশ্বাস, প্রচার সম্পাদক শরিফুল ইসলাম রোকন, বন ও পরিবেশ সম্পাদক সৈয়দ সাজেদুল হক মনি, কুমারী ইউপি চেয়ারম্যান ও ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতি আবু সাঈদ পিন্টু, সাধারণ সম্পাদক আব্দুর রাজ্জাক, হাজী খন্দকার মহাবুব আলম, মানোয়ার খন্দকার, সৈয়দ শামছুল হক, সৈয়দ সিরাজুল হক, মোহন খন্দকার, শিমুল খন্দকার, রুকুল খন্দকার, বিপুল খন্দকার, লাল্টু খন্দকার, সলক খন্দকার, মানিক খন্দকার, সাহানুর খন্দকার, কহিনুর খন্দকার, ফারুক খন্দকার, মুন্জু খন্দকার, সন্জু খন্দকার, সাংবাদিক রুনু খন্দকার, আজিজুল হক মন্ডল, মহসিন আলী মন্ডল, ইউপি সদস্য দাউদ আলী, আওয়ামী লীগ নেতা ফেরদৌস খন্দকার, আবুল হাসেমসহ সর্বস্তরের মানোষ। পরিবারের পক্ষ থেকে সবার কাছে দোয়া প্রার্থনা করেছেন আলমডাঙ্গা  প্রেসক্লাবের সভাপতি খন্দকার শাহ আলম মন্টু।

চীনের বিপুল সেনা সীমান্ত পেরিয়েছে – ভারতীয় প্রতিরক্ষামন্ত্রী

ঢাকা অফিস ॥ লাদাখে চীনা বাহিনীর অনুপ্রবেশ নিয়ে প্রায় দুই সপ্তাহ লুকোচুরির পর অবশেষে ভারতীয় প্রতিরক্ষামন্ত্রী রাজনাথ সিং স্বীকার করেছেন, চীনের পিপল’স লিবারেশন আর্মির (পিএলএ) বিপুল সংখ্যক সদস্য চূড়ান্ত নিয়ন্ত্রণ রেখা (এলএসি) পেরিয়েছে। মঙ্গলবার একটি টেলিভিশন চ্যানেলকে দেয়া সাক্ষাৎকারে ভারতীয় মন্ত্রী বলেন, ‘এটা সত্য যে এলএসিতে চীনা সেনা আছে। সীমান্ত কোথায় তা নিয়ে দুই পক্ষেরই মতপার্থক্য রয়েছে। আর সেখানে বিপুল সংখ্যক চীনা সৈন্য পৌঁছে গেছে।’ ‘এমন পরিস্থিতিতে যা করা দরকার ভারত তা করছে’ বললেও ঠিক কী ধরনের পদক্ষেপ নেয়া হচ্ছে তা জানাননি রাজনাথ সিং। সূত্রের বরাতে ভারতীয় সংবাদমাধ্যম বিজনেস স্ট্যান্ডার্ড জানিয়েছে, সীমান্তে চীনের সেনা সমাবেশের জবাবে উত্তরাঞ্চলীয় লাদাখের গালোয়ান উপত্যকা ও মধ্যাঞ্চলীয় লাদাখের প্যানগং লেকের কাছে বাড়তি সেনা মোতায়েন করেছে ভারত। ওই অঞ্চলে অন্তত পাঁচ হাজার পিএলএ সেনা জড়ো করা হয়েছে এবং নিজেদের অবস্থান দৃঢ় করতে তারা রাস্তা ও কংক্রিটের বাঙ্কার তৈরি করছে। তবে চীনা বাহিনীর ওপর কোনও ধরনের আক্রমণ বা উস্কানি দিয়ে পরিস্থিতি আরও উত্তপ্ত করতে নিষেধ করা হয়েছে ভারতীয় সেনাদের। ভারতীয় প্রতিরক্ষামন্ত্রীর বিশ্বাস, ২০১৭ সালে ডোকলাম সীমান্তে সৃষ্ট উত্তেজনার মতো এবারও দুই দেশের শীর্ষ সামরিক কর্মকর্তাদের মধ্যে আলোচনা এবং নয়া দিল্লি-বেইজিংয়ের মধ্যে কূটনৈতিক তৎপরতা বৃদ্ধির মাধ্যমেই সংকটের সমাধান সম্ভব। রাজনাথ সিং বলেন, ‘বর্তমান পরিস্থিতিতে সেনাবাহিনীর মধ্যে আলোচনা প্রক্রিয়াধীন রয়েছে। আগামী ৬ জুন শীর্ষ সামরিক কর্মকর্তাদের মধ্যে বৈঠকের সম্ভাবনা রয়েছে। এ বিষয়ে (ভারতীয়) সেনাপ্রধানের সঙ্গে কথা হয়েছে।’

দৌলতপুরের চিলমারীতে করোনায় কর্মহীন ও অসহায়দের মাঝে এমপি বাদশার খাদ্য সামগ্রী বিতরণ

শরীফুল ইসলাম ॥ ‘করোনা ভাইরাসে আতঙ্কিত না হয়ে সতর্ক হোন’ এই স্লোগানে কুষ্টিয়া-১ দৌলতপুর আসনের এমপি এ্যাড. আ. ক. ম. সরওয়ার জাহান বাদশা করোনায় কর্মহীন ও অসহায়দের মাঝে খাদ্য সামগ্রী বিতরণ করেছেন। গতকাল বুধবার দুপুরে উপজেলার চিলমারী ইউনিয়নের ৯টি ওয়ার্ডের ২২০ জনের মাঝে খাদ্য সামগ্রী তুলে দেওয়া হয়। জোতাশাহী মাধ্যমিক বিদ্যালয় চত্বরে খাদ্য সামগ্রী বিতরণকালে উপস্থিত ছিলেন, চিলমারী ইউনিয়নের সাবেক চেয়ারম্যান ডিএম সাইফুল ইসলাম শেলি, বর্তমান চেয়ারম্যান সৈয়দ আহমেদ, জোতাশাহী মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক এনামুল হক, ইউপি সদস্য সুচিত্রা সুমন, সাবেক ছাত্রলীগ নেতা রাশেদ রানা ও দৌলতপুর যুবলীগ নেতা ওয়াসিম কবিরাজসহ স্থানীয় আওয়ামী লীগ নেতৃবৃৃন্দ। খাদ্য সামগ্রীর মধ্যে ছিল প্রতি প্যাকেটে ১০ কেজি চাল ও একটি করে সাবান। খাদ্য সামগ্রী বিতরণ পূর্ব বক্তব্যে কুষ্টিয়া-১ দৌলতপুর আসনের এমপি এ্যাড. আ. ক. ম. সরওয়ার জাহান বাদশাহ্ বলেন, করোনাকালীন সময়ে সরকারী ত্রাণ সহায়তার পাশাপাশি আমিও ব্যক্তিগত উদ্যোগে কর্মহীন ও অসহায়দের মাঝে খাদ্য সহায়তা পৌঁছে দিচ্ছি। তিনি চিলমারীর উন্নয়নে যা যা করনীয় তা করার প্রতিশ্র“তি দিয়ে বলেন, চিলমারী হবে পর্যটন কেন্দ্র যেখানে দূরদুরান্ত থেকে পর্যটক এসে প্রাকৃতিক সৌন্দর্য্য উপভোগ করবে। চিলমারীর যোগাযোগ ব্যবস্থার উন্নয়ন করা হবে বলেও তিনি তার বক্তব্যে উল্লেখ করেন। উল্লেখ্য এমপি সরওয়ার জাহান বাদশা ধারাবাহিকভাবে প্রতিদিন বিভিন্ন ইউনিয়নের কর্মহীন ও অসহায়দের মাঝে খাদ্য সামগ্র তুলে দিচ্ছেন। তারই ধারাবাহিকতায় গতকাল তিনি চিলমারী ইউনিয়নে খাদ্য সামগ্রী বিতরণ করেন।

ঝিনাইদহে ট্রাক চাপায় ইমাম নিহত

ঝিনাইদহ প্রতিনিধি ॥ ঝিনাইদহের কালীগঞ্জে ট্রাক চাপায় মোবারকগঞ্জ চিনিকল মসজিদের পেশ ইমাম হাফেজ আলহাজ্ব জালাল উদ্দিন (৬৫) নিহত হয়েছে। গতকাল বুধবার দুপুরে কালীগঞ্জ শহরের পুরাতন হাট চাদনীর সামনে এ দুর্ঘটনা ঘটে।  নিহত জালাল উদ্দিনের গ্রামের বাড়ি  গোপালগঞ্জ জেলায় এবং তিনি মোবারকগঞ্জ চিনিকল আবাসিক এলাকায় বসবাস করতেন। প্রত্যক্ষদর্শীরা, হাফেজ আলহাজ্ব জালাল উদ্দিন কালীগঞ্জ পুরাতন হাট চাদনি এলাকায় কাঁচা বাজার করছিলেন। এ সময় পেছন থেকে একটি ট্রাক তাকে চাপা দেয়। এ সময় গুরুতর আহত হলে স্থানীয়রা তাকে কালীগঞ্জ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করলে কর্তব্যরত চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষণা করেন। খবর পেয়ে ঝিাইদহ ৪ আসনের সংসদ সদস্য আনোয়ারুল আজীম আনার, উপজেলা পরিষদের ভাইস চেয়ারম্যান শিবলি নোমানী, মোবারকগঞ্জ চিনি শ্রমিক কর্মচারী ইউনিয়নের সভাপতি গোলাম রসুলসহ মোচিকের শ্রমিক কর্মচারী-কর্মকর্তারা হাসপাতালে তাকে দেখতে যান। কালীগঞ্জ থানার ওসি মাহফুজুর রহমান বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

সরকার মানুষ বাঁচানোর জন্য কোনও কাজ করেনি – রিজভী

ঢাকা অফিস ॥ জনগণের ম্যান্ডেট বিহীন ‘ব্যর্থ সরকার’ মানুষকে বাঁচানোর জন্য কোনো কাজ করেনি বলে মন্তব্য করেছেন বিএনপির সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী। তিনি বলেন, শুধু নিজেদের নেতাকর্মী ও শাসকগোষ্ঠীর পকেট ভারী করা, ফুলিয়ে ফাঁপিয়ে বড় করাই এই সরকারের মূল লক্ষ্য। গতকাল বুধবার নয়াপল্টনে বিএনপির প্রতিষ্ঠাতা জিয়াউর রহমানের ৩৯তম শাহাদাত বার্ষিকী উপলক্ষে দোয়া মাহফিল ও খাদ্য বিতরণের সময় তিনি এসব কথা বলেন। সামাজিক সংস্থা জাসাসের উদ্যোগে এ খাদ্য বিতরণ করা হয়। রিজভী বলেন, আজকে যারা পিস্তল দেখিয়ে হত্যার হুমকি দিচ্ছে। অত্যাচার করছে তারা বাংলাদেশ থেকে এয়ার এম্বুলেন্সে করে পালিয়ে গেছে। একটি ছেলে সরকারের সমালোচনা করে পোষ্ট দিলে তাকে রাতের অন্ধকারে আইনশৃঙ্খলা বাহিনী তুলে নিয়ে আসে। আর এয়ার অ্যাম্বুলেন্স ভাড়া করে হত্যার হুমকি দেয়া আসামি শিকদার গ্র“পের দুইজন ছেলে কী করে চলে গেল। মেডিকেল ভিসা দিল কী করে। তাদের নামে মামলা হয়েছে। পুলিশ সেখানে কী করলো। পুলিশ কিছুই করেনি। তারমানে শাসকগোষ্ঠীর সঙ্গে সম্পর্কিত অপরাধীদের নানাভাবে রেহাই দেয়া হচ্ছে। তাদেরকে সুযোগ করে দিচ্ছেন। কারণ দুই ভাই চেয়েছে ব্যাংকের টাকা লুট করতে। এমডিরা রাজি হয়নি তাই তাদের হত্যার হুমকি দেয়া হয়েছে। এই পরিস্থিতি চলছে দেশে। অরাজকতা চলছে, মার্শাল ল চলছে। এভাবে চলতে পারে না। তিনি বলেন, আমাদেরকে কঠিন পরিস্থিতির মধ্যে কাজ করতে হচ্ছে। আমাদের নেতাকর্মীদের নামে মিথ্যা মামলা দিয়ে গ্রেফতার করা হচ্ছে, হয়রানি করা হচ্ছে, কারাগারে পাঠানো হচ্ছে। তারপরও আমরা মানুষের দুঃসময়ে বসে নেই। আমাদের সাধ্যানুযায়ী অসহায় কর্মহীন মানুষের পাশে দাঁড়িয়েছি। বিএনপির সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব বলেন, করোনার প্রকোপে সারাদেশে কর্মহীন মানুষের হাহাকার চলছে। আরেকদিকে সরকারের ত্রাণ লুটপাট চলছে। প্রধানমন্ত্রীর আড়াই হাজার টাকা থেকেও আত্মসাৎ করা হয়েছে। জনগণের সমর্থনহীন সরকার ক্ষমতায় আছে বলেই জনগণের টাকা আত্মসাৎ করছে, ত্রাণ আত্মসাৎ করছে। সরকারি হাসপাতালে ২০ থেকে ৩০ শতাংশের বেশি রোগীর জায়গা দিতে পারছে না। ঢাকার বাইরে তো চিকিৎসা পাচ্ছে না। এর মধ্যে যদি কেউ করোনা ছাড়া হূদরোগ, শ্বাসকষ্টসহ অন্যান্য রোগে আক্রান্ত হয় তারা কোনো হাসপাতালে সিট পাচ্ছে না। হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ বলছে আগে করোনা টেস্ট করুন। করোনা টেস্ট করতে ১২ থেকে ২৪ ঘণ্টা সময় লাগে। অনেক জায়গায় চার দিনও লেগে যায়। তাই অনেক রোগী অ্যাম্বুলেন্সের মধ্যেই মারা যাচ্ছেন। এই ব্যর্থ সরকার মানুষকে বাঁচানোর জন্য কোনো কাজ করেনি। দোয়া মাহফিল ও খাদ্য বিতরণ অনুষ্ঠানে জাসাসের সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব জাকির হোসেন রোকনের পরিচালনায় এ সময় আরও উপস্থিত ছিলেন, জাসাসের সহ-সভাপতি আহসান উল্লাহ চৌধুরী, শাহরিয়ার ইসলাম শায়লা, ডাক্তার আরিফ, জাহাঙ্গীর আলম রিপন, ফেরদৌস ফকির, যুগ্ম সাধারন সম্পাদক রফিকুল ইসলাম স্বপন, সাংগঠনিক সম্পাদক চৌধুরী মাজহার আলী শিবা শানু, জাসাস নেতা খালেদ এনাম মুন্না, এনামুল হক জুয়েল, হারুন-অর-রশিদ, নবাব মাঝি, শরিফুল ইসলাম, মালেক রতন, ইব্রাহিম খলিলসহ জাসাসের নেতৃবৃন্দ।

কুষ্টিয়া সদরে ৪ শতাধিক মসজিদে প্রধানমন্ত্রীর আর্থিক সহযোগিতার চেক বিতরনকালে জুবায়ের হোসেন চৌধুরী

সৃষ্ট সংকটে সরকার সব শ্রেনীর মানুষের পাশে মানবিক সহযোগিতা নিয়ে এগিয়ে এসেছে

নিজ সংবাদ ॥ কুষ্টিয়া সদর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা জুবায়ের হোসেন চৌধুরী বলেছেন- করোনা ভাইরাসের ফলে সৃষ্ট সংকটে সরকার সব শ্রেনীর মানুষের পাশে মানবিক সহযোগিতা নিয়ে এগিয়ে এসেছে তারই ধরাবাহিকতায় দেশের প্রতিটি মসজিদ ও অন্যান্য ধর্মাবলম্বীদের উপসনালয়ে আর্থিক সহযোগিতা করা হচ্ছে যা ইতিবাচক দিক। তিনি গতকাল বুধবার সদর উপজেলা পরিষদ মিলনায়তনে প্রধান মন্ত্রীর পক্ষ থেকে করোনা ভাইরাস  (কোভিড ১৯) সংক্রামন পরিস্থিতিতে দেশের মসজিদ সমূহের আর্থিক অনুদানের চেক প্রদানকালে তিনি একথা বলেন। কুষ্টিয়া সদর উপজেলা ও ইসলামী ফাউন্ডেশন কুষ্টিয়ার উদ্যোগে সদর উপজেলার ৪ শতাধিক মসজিদ কমিটির প্রতিনিধির হাতে এই চেক তুলে দেয়া হয়।

ইসলামিক ফাউন্ডেশন কুষ্টিয়া সদর উপজেলার ফিল্ড অফিসার ফারুক হোসেন বিশ্বাসের সভাপতিত্বে চেক প্রদান অনুষ্ঠানে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা জুবায়ের হোসেন চৌধুরী বলেন- আমাদের সমাজে মসজিদ একটি গুরুত্বপুর্ন স্থান। আপনারা যারা মসজিদের বিভিন্ন দায়িত্বে আছেন তারা এই করোনা সংকটে অগ্রনী ভূমিকা রাখতে পারেন। আপনারা মুসল্লীদের সচেতনতা করতে বিশেষ ভূমিকা রেখে যাচ্ছেন আগামী দিনগুলোতে আপনাদের প্রচারনামুলক ধর্মীয় বিভিন্ন আলোচনায় করোনা মোকাবিলায় বিশেষ কার্যকর হবে বলে আশা রাখি। তিনি বলেন- সরকারের একার পক্ষে করোনা মোকাবিলা সম্ভব নয় সকলের সম্মিলিত প্রচেষ্ঠা আন্তরিকতা এবং সচেতনায় করোনার বিপুল ক্ষতি থেকে রেহায় পেতে পারি। তিনি আরো বলেন, সরকারের পাশাপাশি অনেক সুহৃদয়ক মানুষেরা নিজেদের সামর্থ অনুযায়ী মানুষের মাঝে সাহায্যের হাত বাড়িয়ে দিয়ে যে মহানুভবতার পরিচয় দিয়েছেন তা প্রমংসার দাবী রাখে। কেননা সরকারের সদিচ্ছার কারনেই সুস্থভাবে ত্রান সামগ্রী এবং খাদ্য সামগ্রী দেশব্যাপী বিতরণ করা হচ্ছে। তিনি আরো বলেন- করোনা ভাইরাসে আজ সারা বিশ^ময় এক বিভিষিকাময় অবস্থার সৃষ্টি করেছে। এর ফলে বৈশি^ক সমস্যা সৃষ্টি হয়েছে। আর এই সমস্যা নিরসনে মাননীয় প্রধানমন্ত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনা সার্বক্ষনিক মনিটরিং করছেন।

কুষ্টিয়া সদর উপজেলায় প্রশিক্ষণপ্রাপ্ত হতদরিদ্র নারীদের মাঝে সেলাই মেশিন বিতরণ

নিজ সংবাদ ॥ কুষ্টিয়া সদর উপজেলা পরিষদের তত্বাবধানে ও মহিলা বিষয়ক কার্যালয়ের অধিনে ৪০জন প্রশিক্ষণপ্রাপ্ত হতদরিদ্র নারীদের মাঝে সেলাই মেশিন বিতরণ করা হয়েছে।গতকাল বুধবার দুপুরে সদর উপজেলা পরিষদ কার্যালয়ের সভাকক্ষে আয়োজিত সেলাই মেশিন বিতরণ অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন উপজেলা নির্বাহী অফিসার (ইউএনও) জুবায়ের হোসেন  চৌধুরী।প্রধান অতিথি হিসেবে হতদরিদ্রদের মাঝে সেলাই মেশিন বিতরণ করেন সদর উপজেলা পরিষদ  চেয়ারম্যান আতাউর রহমান আতা।এ সময় অন্যান্যের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন, সদর উপজেলা আওয়ামীলীগের সাধারন সম্পাদক  রেজাউল হক, উপজেলা পরিষদের মহিলা ভাইস  চেয়ারম্যান শাহনাজ পারভীন রেখা, শহর ৫ নং ওয়ার্ড আওয়ামীলীগের সাধারন সম্পাদক ডাঃ আফিল উদ্দিন, শহর ছাত্রলীগের যুগ্ম আহবায়ক জাহিদুর রহমান পাভেল প্রমূখ।প্রধান অতিথি আতাউর রহমান আতা তাঁর বক্তব্যে বলেন- আওয়ামীলীগ সরকার দেশের উন্নয়নে অগ্রণী ভূমিকা রেখেছেন, যে সকল নারীরা কর্মহীন তাদের কর্মের ব্যবস্থা করছেন, হতদরিদ্রদের জন্য সেলাই  মেশিনসহ বিভিন্নভাবে সহায়তা প্রদান করছে। তিনি আরো বলেন- হঠাৎ করোনা ভাইরাসে দেশের উন্নয়ন এক ধাপ পিছিয়ে গেছে। করোনা পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে সকলকে সতর্ক হতে হবে, সরকারি নিয়ম (স্বাস্থ্য বিধি)  মেনে চলতে হবে। এই মহামারীর সময়ে সকলকে সচেতন হওয়ার আহবান জানান।

 

অতিরিক্ত বিল আদায়ে মরিয়া হয়ে উঠেছে বিদ্যুত কোম্পানিগুলো

ঢাকা অফিস ॥ করোনা মহামারীতে দেশের আবাসিক বিদ্যুৎ গ্রাহকদের বেশি বিল চাপিয়ে দেয়া হয়েছে। কিন্তু এখন বিদ্যু বিতরণ কোম্পানিগুলো ভুল বিলের দায় নিতে নারাজ। বরং বলা হচ্ছে- যেভাবে যাকে যতো বিল করা দেয়া হয়েছে তা-ই পরিশোধ করতে হবে। তবে কোন গ্রাহক প্রকৃত বিল দিতে চাইলে তাকেই উদ্যোগ নিয়ে বিদ্যুৎ অফিসে যোগাযোগ করে ঠিক করে আনতে হবে। আর বিল পরিশোধ না করলে বিতরণ কোম্পানি লাইন কেটে দেয়ার হুমকি দিয়ে মাইকিং করে বেড়াচ্ছে। এ ব্যাপারে বিদ্যুৎ বিভাগের কোনো সুনির্দিষ্ট নির্দেশনা নেই। অভিযোগ উঠেছে ইচ্ছাকৃতভাবে বেশি বিল করে গ্রাহক হয়রানি করলেও বিদ্যুৎ বিভাগ বিতরণ কোম্পানির প্রতি নমনীয়তা দেখাচ্ছে। ভুক্তভোগী গ্রাহক এবং বিদ্যুৎ বিভাগ সংশ্লিষ্ট সূত্রে এসব তথ্য জানা যায়। সংশ্লিষ্ট সূত্র মতে, সরকার করোনা পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে রাখতে বিদ্যুৎ গ্রাহকদের ব্যাংকে মার্চ থেকে মে পর্যন্ত বিলের বিলম্ব মাসুল তুলে দেয়। জুন মাসে তিন মাসের বিল একসঙ্গে দিলেই চলবে বলে বিজ্ঞপ্তি জারি করে। কিন্তু মে মাসে এসেই বিতরণ কোম্পানিগুলো গ্রাহকের ব্যবহৃত বিদ্যুতের চেয়ে বেশি বিল করে। এমনকি দ্বিগুণ তিনগুণ পর্যন্ত বিল বেশি করা হয়েছে। গস্খাহকরা ওই বিল নিয়ে বিতরণ কোম্পানির অফিসে দৌড়াঝাঁপ শুরু করার পর বিদ্যুৎ বিভাগ থেকে পরবর্তী মাসের বিলের সঙ্গে সমন্বয় করা হবে বলে জানিয়ে আরেকটি বিজ্ঞপ্তি জারি করা হয়েছে। আর বিদ্যুৎ বিভাগ তাতেই নিজেদের দায় শেষ বলে মনে করছে। এ প্রসঙ্গে বিদ্যুৎ সচিব ড. সুলতান আহমেদ জানান, ভুল বিলের বিষয়টি করোনা পরবর্তী সময়ে সুরাহা করা হবে। তারপরও যদি কারও বেশি বিল নিয়ে সমস্যা হয়, তাহলে বিতরণ কোম্পানির অফিসে আসলেই ঠিক করে দেয়া হবে। অতিরিক্ত বিল পরে সমন্বয় করা হবে।

করোনায় আরও ৩৭ মৃত্যু, নতুন শনাক্ত ২৬৯৫

ঢাকা অফিস ॥ দেশে করোনাভাইরাসে (কোভিড-১৯) আক্রান্ত হয়ে গত ২৪ ঘণ্টায় আরও ৩৭ জনের মৃত্যু হয়েছে। টানা দ্বিতীয় দিনের মতো এত সংখ্যক মানুষের মৃত্যু হলো। এতে মোট মৃতের সংখ্যা দাঁড়াল ৭৪৬ জনে। গত ২৪ ঘণ্টায় করোনায় আক্রান্ত হিসেবে শনাক্ত হয়েছেন দুই হাজার ৬৯৫ জন। এতে মোট আক্রান্তের সংখ্যা দাঁড়াল ৫৫ হাজার ১৪০ জনে। গতকাল বুধবার দুপুরে স্বাস্থ্য অধিদফতরের করোনাভাইরাস বিষয়ক নিয়মিত হেলথ বুলেটিনে এ তথ্য জানানো হয়। অধিদফতরের অতিরিক্ত মহাপরিচালক অধ্যাপক ডা. নাসিমা সুলতানা অনলাইনে বুলেটিন উপস্থাপন করেন। তিনি ৫০টি ল্যাবরেটরিতে নমুনা পরীক্ষার তথ্য তুলে ধরে জানান, করোনাভাইরাস শনাক্তে গত ২৪ ঘণ্টায় আরও ১৫ হাজার১০৩টি নমুনা সংগ্রহ করা হয়। পরীক্ষা করা হয় ১২ হাজার ৫১০টি। এ নিয়ে দেশে মোট নমুনা পরীক্ষা করা হলো তিন লাখ ৪৫ হাজার ৫৮৩টি। নতুন নমুনা পরীক্ষায় করোনার উপস্থিতি পাওয়া গেছে আরও দুই হাজার ৬৯৫ জনের দেহে। ফলে দেশে মোট আক্রান্ত হয়েছেন ৫৫ হাজার ১৪০ জন। আক্রান্তদের মধ্যে মৃত্যু হয়েছে আরও ৩৭ জনের। ফলে মৃতের সংখ্যা দাঁড়াল ৭৪৬ জনে। গত ২৪ ঘণ্টায় সুস্থ হয়েছেন আরও ৪৭০ জন। এ নিয়ে সুস্থ হয়ে ওঠা রোগীর সংখ্যা দাঁড়াল ১১ হাজার ৫৯০ জনে। এদিকে গত কয়েক দিন দেশে মোট ৫২টি পিসিআর ল্যাবে করোনাভাইরাস শনাক্তের পরীক্ষা হতো। তবে গতকাল বুধবার ৫০টি ল্যাবের পরীক্ষার ফল পাওয়া গেছে। দুটির ফল পাওয়া যায়নি। ফল না পাওয়া দুটি পরীক্ষাগার হলো- ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় (ঢাবি) এবং জামালপুরের শেখ হাসিনা মেডিকেল কলেজ। এর মধ্যে ঢাবির ল্যাবে আর পরীক্ষা করা হবে না এবং শেখ হাসিনা মেডিকেল কলেজের ল্যাবটিতে যান্ত্রিক ক্রুটির কারণে পরীক্ষা হয়নি। ডা. নাসিমা সুলতানা বলেন, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের যে পরীক্ষাগারটি ছিল, তারা বিশেষ কারণে এই পরীক্ষাগারটির কার্যক্রম আর চালাবেন না বলে আমাদের জানিয়েছেন। কাজেই ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের পরীক্ষাগারের রিপোর্ট আর আমাদের কাছে থাকবে না। জামালপুরের শেখ হাসিনা মেডিকেল কলেজ পরীক্ষাগারের মেশিনটি টেকনিক্যাল কারণে কাজ করছে না। মেশিনটি কার্যকর হলে আমরা আবার তাদের রিপোর্ট দেব। আজকে আমরা ৫০টি পিসিআর ল্যাবের নমুনা পরীক্ষা ও এর ফলাফল দেব। গত ২৪ ঘণ্টায় করোনার চিত্র তুলে ধরে নাসিমা সুলতানা বলেন, ৫০টি পরীক্ষাগারে নমুনা পরীক্ষা হয়েছে ১৫ হাজার ১০৩টি। ২৪ ঘণ্টায় পরীক্ষা করা হয়েছে ১২ হাজার ৫১০টি নমুনা। এ পর্যন্ত নমুনা পরীক্ষা করা হয়েছে ৩ লাখ ৪৫ হাজার ৫৮৩টি, যা নমুনা পরীক্ষা করা হয়েছে, তাতে শনাক্ত হয়েছে ২ হাজার ৬৯৫ জন এবং এ পর্যন্ত শনাক্ত ৫৫ হাজার ১৪০ জন। শনাক্তের হার ২১ দশমিক ৫৪ শতাংশ। গত ২৪ ঘণ্টায় সুস্থ হয়েছে ৪৭০ জন এবং এ পর্যন্ত ১১ হাজার ৫৯০ জন। শনাক্ত বিবেচনায় সুস্থতার হার ২১ দশমিক ০২ শতাংশ। গত ২৪ ঘণ্টায় মৃত্যুবরণ করেছেন ৩৭ জন এবং এ পর্যন্ত মৃত্যুবরণ করেছেন ৭৪৬ জন। শনাক্ত বিবেচনায় মৃত্যুর হার ১ দশমিক ৩৫ শতাংশ। গত মঙ্গলবারের বুলেটিনে জানানো হয়, করোনায় আক্রান্ত হয়ে গত ২৪ ঘণ্টায় ৩৭ জন মারা গেছেন। ১২ হাজার ৭০৪টি নমুনা পরীক্ষায় করোনার উপস্থিতি পাওয়া গেছে আরও দুই হাজার ৯১১ জনের দেহে। যা একদিনে সর্বোচ্চ শনাক্তের রেকর্ড। সে হিসাবে আগের ২৪ ঘণ্টার তুলনায় গত ২৪ ঘণ্টায় মৃত্যু সমানসংখ্যক থাকলেও কমেছে শনাক্ত রোগীর সংখ্যা। একদিনে সর্বোচ্চ মৃত্যুর রেকর্ড আছে ৪০ জনের। সেটি জানানো হয় ৩১ মে’র বুলেটিনে। এদিকে ড. নাসিমা জানান, করোনায় আক্রান্ত হয়ে মৃত্যুবরণকারীর মৃতদেহের সৎকার যেকোনো জায়গায় করা যাবে। মুসলিম ধর্মাবলম্বীরা গোরস্থানে কিংবা পারিবারিক কবরস্থানে মৃতদেহ দাফন করতে পারবেন। আর অন্য ধর্মাবলম্বীরাও তাদের তাদের বিধি অনুযায়ী যেকোনো জায়গায় মৃতদেহের সৎকার করতে পারবেন। তিনি বলেন, করোনায় মৃত ব্যক্তির দাফন, সৎকার বা ব্যবস্থাপনার নির্দেশনা স্বাস্থ্য সেবা অধিদফতর (ডিজিএইচএস) ওয়েবসাইটে আছে। তবুও বিশেষভাবে সকলের অবগতির জন্য বলতে চাই, মৃতদেহ নিজ নিজ ধর্মীয় বিধি অনুযায়ী সতর্কতা অবলম্বন করে দাফন বা সৎকার করা যায়। নিয়ম অনুযায়ী মৃতদেহের সকল আনুষ্ঠানিকতা শেষে বডি ব্যাগ বা তা না পাওয়া গেলে পলিথিনে মুড়িয়ে স্থানান্তর জন্য মনোনীত কবরস্থান বা পারিবারিকভাবে নির্ধারিত স্থানে মৃতদেহ দাফন করা যাবে। শুধুমাত্র করোনায় মৃত হিসেবে আলাদা কোনো কবরস্থান নির্দিষ্ট করার কোনো দরকার নাই। পারিবারিক কবরস্থানেই এই মৃতদেহ দাফন করা যাবে এবং অন্য ধর্মের জন্য সৎকার করা যাবে। নাসিমা সুলতানা আরও বলেন, বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা (ডব্লিউএইচও) বলেছে, এটা প্রমাণিত হয়নি মৃত ব্যক্তির কাছ থেকে অন্য ব্যক্তির দেহে করোনাভাইরাস ছড়িয়েছে। মৃতদেহ সৎকার করতে ৩/৪ ঘণ্টা সময় লেগেই যায়। ৩ ঘণ্টা পরে এই ভাইরাসের আর কার্যকারিতা থাকে না মৃতদেহের শরীরে। সেজন্য মৃতদেহ থেকে ভাইরাস ছড়ানোর কোনো সম্ভাবনা নেই। মাস্ক ব্যবহারের অর্থনৈতিক সুবিধার চিত্র তুলে ধরে নাসিমা সুলতানা বলেন, বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার পরামর্শক বলেছেন যে, একজন মাস্ক ব্যবহার করলে তার অর্থনৈতিক উপকার হয় ৩ হাজার (২ লাখ ৫৫ হাজার টাকা) থেকে ৬ হাজার (৫ লাখ ১০ হাজার টাকা) ইউএস ডলার। কারণ মাস্ক ব্যবহার করলেই রোগ প্রতিরোধ করা যায়। রোগ প্রতিরোধের ফলে আক্রান্ত না হওয়ায় এতগুলো অর্থ সাশ্রয় করা যায়। ঘরে তৈরি কাপড়ের মাস্ক বৈজ্ঞানিকভাবে স্বাস্থ্যসম্মত। ঘরে তৈরি মাস্ক আমরা ব্যবহার করতে পারি। ঘরের পুরনো কাপড় দিয়েও তিন স্তরবিশিষ্ট মাস্ক তৈরি করে পরা যায়। এ ক্ষেত্রে বলা যায়, এক টাকা মাস্কের পেছনে খরচ করলে আমরা ১ হাজার টাকার উপকার পাবো। কারণ এই মাস্ক ব্যবহার করে আমি আমার রোগ প্রতিরোধ করতে পারবো। তিনি বলেন, এখনও দেখা যাচ্ছে, অনেক মানুষ চায়ের দোকানে, যেকোনো আড্ডায় অনেকেই মাস্ক পরিধান করছেন না। করোনার বিরুদ্ধে যুদ্ধে মাস্ক একটি প্রধান অস্ত্র। আমরা কখনোই এটিকে অবহেলা করতে পারি না। এটি একটি প্রধানতম নিয়ামক এই সংক্রমণকে প্রতিরোধ করার। তার সাথে জনসমাবেশ এড়িয়ে চলা, ৬ ফুট দূরত্ব বজায় রাখা, তা না পারলে কমপক্ষে ৩ ফুট দূরত্ব বজায় রাখতে হবে। বারবার সাবান দিয়ে হাত ধুতে হবে। ডা. নাসিমা বরাবরের মতোই স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলার অনুরোধ জানান। এদিকে রাজধানীর বসুন্ধরা ইন্টারন্যাশনাল কনভেনশন সিটিকে ২০০০ শয্যার করোনা হাসপাতালে রূপান্তর করে সেখানো সেবা প্রদান কার্যক্রম শুরু হয়েছে বলে জানান নাসিমা সুলতানা। তিনি বলেন, বসুন্ধরা কনভেনশন সেন্টারকে হাসপাতালে রূপান্তর করা হয়েছে। এ হাসপাতালের কার্যক্রম শুরু হয়েছে। এখানে দুই হাজার শয্যা প্রস্তুত করা হয়েছে। করোনাভাইরাসের প্রকোপে গোটা বিশ্ব এখন মৃত্যুপুরীতে পরিণত হয়েছে। চীনের উহান শহর থেকে গত ডিসেম্বরে ছড়ানোর পর এ ভাইরাসে বিশ্বজুড়ে এখন পর্যন্ত আক্রান্তের সংখ্যা প্রায় পৌনে ৬৫ লাখ। মৃতের সংখ্যা ছাড়িয়েছে তিন লাখ ৮২ হাজার। তবে পৌনে ৩১ লাখের মতো রোগী ইতোমধ্যে সুস্থ হয়েছেন। বাংলাদেশে করোনাভাইরাস প্রথম শনাক্ত হয় গত ৮ মার্চ।