আলমডাঙ্গা উপজেলার সকল হাট-বাজার, ব্যবসা কেন্দ্র ও দোকানপাট বন্ধ ঘোষণা

আলমডাঙ্গা অফিস ॥ আলমডাঙ্গায় পরবর্তী আদেশ না দেওয়া পর্যন্ত উপজেলার সকল হাট-বাজার, ব্যবসা কেন্দ্র,  দোকানপাট বন্ধ রাখার  ঘোষণা দিয়েছেন উপজেলা প্রশাসন। শুক্রবার উপজেলা নির্বাহী  অফিসার লিটন আলী মাইকে প্রচার করে শনিবার থেকে দোকান-পাট বন্ধের  ঘোষণা দেন। সাথে সাথে থানা অফিসার ইনচার্জ আলমগীর কবীর সঙ্গীয়  ফোর্সসহ গার্মেন্টস পট্টিতে এসে দোকানের মালিকদের সাথে আলাপ আলোচনা করে শনিবার থেকে এ সিদ্ধান্ত জানিয়ে দেয়া হয়। উল্লেখ্য গত প্রায় সপ্তাহ ধরে উপজেলা নির্বাহী  অফিসার লিটন আলী ও অফিসার ইনচার্জ আলমগীর কবীর সঙ্গীয় ফোর্সসহ সরেজমিন পর্যবেক্ষণ করে বাজারে মানুষের উপচেপড়া ভিড়, অসচেতনতা ও অবহেলা। যার কারণে কারণে স্বাস্থ্যবিধি ও সামাজিক দূরত্ব যথাযথভাবে মানা হচ্ছে না। উপজেলার মানুষ বাজারে ক্রয় বিক্রয় করছে। এতে করোনা ভাইরাস সংক্রমণ ভয়াবহভাবে ছড়িয়ে পড়ার আশংকা দেখা দেয়ায় প্রশাসন বন্ধের  ঘোষণা  দেন। জরুরি বিজ্ঞপ্তিতে উল্লেখ করা হয়েছে, চিকিৎসা সংশ্লিষ্ট জরুরি সেবা যেমন ফার্মেসী সার্বক্ষনিক খোলা থাকবে। এছাড়া নিত্য প্রয়োজনীয় পন্য, কৃষি পণ্য পরিবহনের যানবাহন এর আওতামুক্ত থাকবে। নিত্য প্রয়োজনীয় পণ্যের দোকান, কাঁচা বাজার বিকেল ৪ টা পর্যন্ত এবং মুদি দোকান ৬টা পর্যন্ত খোলা থাকবে। এ নির্দেশ অমান্যকারীদের বিরুদ্ধে কঠোর আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহন করা হবে।

কুমারখালীতে বৃষ্টির পানিতে বোরো ধান নিমজ্জিত

কুমারখালী প্রতিনিধি ॥ বৃষ্টির পানিতে নিমজ্জিত হয়েছে কুষ্টিয়ার কুমারখালী উপজেলার বিপুল পরিমান জমির উঠতি বোরো ধান। সরেজমিনে ঘুরে দেখা গেছে, হঠাৎ বৃষ্টির কারণে উপজেলার নন্দলালপুর ইউনিয়ন, জগন্নাথপুর ইউনিয়ন ও সদকী ইউনিয়নের বিভিন্ন এলাকার খাল বিল ডোবা নালাসহ শুকনো ধানী জমি পানি থৈথৈ করছে। আর পানির নিচে ডুবে রয়েছে উঠতি সোনালী বোরো ধান। কোথাও কোথাও সামান্য দেখা যাচ্ছে পাকা ধানের পাতা। পাকা ধান হঠাৎ করে পানিতে নিমজ্জিত হওয়ায় অনেকটা দিশেহারা হয়ে পড়েছেন কৃষকেরা। পানি নিস্কাসনে দেরী হওয়ার আশঙ্কায় অনেকেই তড়িঘড়ি করে শুধু ধানের আগা কেটে ডাঙ্গায় তুলছেন। পুরাতন চড়াইকোল, বুজরুখ বাঁখই ও খোর্দ্দ তারাপুর গ্রামের কৃষকেরা জানান, উঠতি পাকা ধান বেশিদিন  পানিতে নিমজ্জিত থাকলে নষ্ট হয়ে যাবে। তাই খড়ের আশা ছেড়ে দিয়ে শুধু ধানের আগা কেটে নিতে হচ্ছে।  দুর্গাপুর গ্রামের কৃষক এমরান হোসেন আরিফ জানান, ধানকাটা শ্রমিক সংকট ও টাকা সাশ্রয়ের জন্য এবার কৃষি অফিস থেকে ধান কাটা মেশিন সংগ্রহ করেছি। কিন্তু বৃষ্টির কারণে মাঠে পানি জমে গিয়েছে তাই ধান কেটে ঘরে তুলতে অনেক কষ্ট ও লোকসান গুনতে হবে। নন্দলালপুর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান মো. নওশের আলী বিশ্বাস জানান, আকস্মিক চাপা বৃষ্টির কারণে মাঠে ঘাটে পানি জমে গেছে। আর বৃষ্টির পানিতে বিপুল পরিমান জমির উঠতি বোরো ধান ডুবে গেছে। বৃষ্টির পানি নিস্কাসনের জন্য প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেওয়া হয়েছে। উপজেলা কৃষি অফিসার কৃষিবিদ দেবাশীষ কুমার দাস উপজেলার কয়েকটি ইউনিয়নের নিচু জমির উঠতি বোরো ধান বৃষ্টির পানিতে নিমজ্জিত হয়েছে বলে নিশ্চিত করেছেন। পানি বেশি দিন জমে থাকলে ধানের ক্ষতিগ্রস্থ হওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে।  কুমারখালী উপজেলা নির্বাহী অফিসার রাজীবুল ইসলাম খান জানান, বৃষ্টির পানিতে উঠতি বোরো ধান নিমজ্জিত হওয়ার খবর শুনে তাৎক্ষণিক পানি নিস্কাশনে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করা হয়েছে।

ভেড়ামারা বাহাদুরপুরে ইয়াসিন-মাহমুদা স্মৃতি পরিষদের উদ্যোগে দুস্থ্যদের মাঝে নগদ অর্থ ও খাদ্য সামগ্রী বিতরণ

নিজ সংবাদ ॥ ইয়াসিন-মাহমুদা স্মৃতি পরিষদের উদ্যোগে করোনা ভাইরাস মহামারীতে দুস্থ্যদের মাঝে খাদ্য সামগ্রী ও নগদ অর্থ বিতরণ এবং বিনামুল্যে চিকিৎসা সেবা প্রদান করা হয়েছে। গতকাল শনিবার দুপুরে কুষ্টিয়ার ভেড়ামারার পাইলট উচ্চ বিদ্যালয়ে শতাধিক পরিবারের হাতে নগদ অর্থ তুলে দেন ইয়াসিন-মাহমুদা স্মৃতি পরিষদের প্রতিষ্ঠাতা কুষ্টিয়া মেডিকেল কলেজের প্রতিষ্ঠাতাকালীন প্রিন্সিপাল প্রফেসর ডাঃ ইফতেখার মাহমুদ। এসময় উপস্থিত ছিলেন ধরমপুর ইউপি আওয়ামীলীগের সভাপতি শামসুল হক, সাংগঠনিক সম্পাদক আবু মোহাম্মদ সাঈদ চপল, ভেড়ামারা উপজেলা আওয়ামীলীগের অর্থ সম্পাদক শরিফুজ্জামান নবাব, ইউপি যুুবলীগের সভাপতি আব্দুল আজিজ, আওয়ামীলীগ নেতা মশিউর রহমান ঝন্টু, পৌর যুবলীগ সাধারন সম্পাদক আসাদুজ্জামান আসলাম। পরে বাহাদুরপুর ইউনিয়ন আওয়ামীলীগ কার্যালয়ে দুস্থ্যদের মাঝে খাদ্য সামগ্রী বিতরন করেন ডাঃ ইফতেখার মাহমুদ। এসময় উপস্থিত ছিলেন বাহাদুরপুর ইউপি আওয়ামীলগের সহসভাপতি হাফিজুর রহমান আজাদ ও রওশন আলী, সাধারন সম্পাদক উজ্জল হোসেন, প্রচার সম্পাদক আব্দুল গফ্ফার। সেখানে দুস্থ্যদের মাঝে খাদ্র সামগ্রী বিতরন করা হয়। এসময় চিকিৎসা সেবা প্রদান করা হয়। চিকিৎসা সেবা প্রদান করেন প্রফেসর ডাঃ ইফতেখার মাহমুদ ও ডাঃ জাহিদুল আলম খান।

 

ভ্যাকসিন আসুক না আসুক সব সচল হবে – ট্রাম্প

ঢাকা অফিস ॥ মহামারি করোনাভাইরাসে সবচেয়ে বড় বিপর্যস্ত দেশ হওয়া সত্ত্বেও মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প শুক্রবার হোয়াইট হাউস থেকে ঘোষণা দিয়েছেন প্রাণঘাতী এই ভাইরাসের প্রতিষেধক আসুক আর না আসুক দেশকে স্বাভাবিক পরিস্থিতিতে ফিরিয়ে আনা হবে। ভ্যাকসিন তৈরির গতি বৃদ্ধির জন্য নতুন নেতৃত্বের ঘোষণা দিয়ে ট্রাম্প প্রেস ব্রিফিংয়ে বলেছেন, ‘আমি একটা বিষয় সবাইকে স্পষ্ট করতে চাই। আর এটা খুব গুরুত্বপূর্ণও। ভ্যাকসিন আসুক কিংবা না আসুক আমরা স্বাভাবিক অবস্থায় ফিরবো এবং আমরা এর প্রক্রিয়া শুরু করে দিয়েছি।’ হোয়াইট হাউসের রোজ গার্ডেনে করোনা নিয়ে নিয়মিত প্রেস ব্রিফিংয়ে তিনি বলেন, ‘আরও অনেক ক্ষেত্রে কিন্তু ভ্যাকসিন তৈরি হয়নি এবং ভাইরাস কিংবা ফ্লু আসবেই, আপনাকে এর বিররুদ্ধে লড়াই করেই চলতে হবে।‘ তিনি সব কিছু স্বাভাবিক করার ওপর জোরারোপ করেছেন। করোনাকে সঙ্গী করেই চলার আহ্বান জানিয়ে ট্রাম্প বলেন, ‘আমার ধারণা লোকেরা মাঝে মধ্যে, আমরা এখনও ঠিক জানি না, তবে মনে হয়, তারা ভাইরাসটির বিরুদ্ধে প্রতিরোধ গড়ে তুলতে পারছেÑঅন্তত অল্প সময়ের জন্য হলেও। এটা হতে পারে জীবনের জন্য। তবে আপনাকে এর বিরুদ্ধে লড়াই চালিয়ে যেতে হবে।’ বছরের শেষ নাগাদ করোনার ভ্যাকসিন তৈরি হবে বলে আশাবাদী ট্রাম্প। বিশেষজ্ঞরা এখনই সব সচল করার বিরোধী। তাদের দাবি, এটা হলে ভাইরাসটি আরও ব্যাপকহারে কমিউনিটিতে ছড়িয়ে পড়বে। সমালোচকরা বলছেন, নভেম্বরে প্রেসিডেন্ট নির্বাচন তাই ঝুঁকি নিয়ে হলেও সব সচল করতে চাচ্ছেন ট্রাম্প। করোনায় আক্রান্ত ও মৃত্যুতে যুক্তরাষ্ট্রের ধারেকাছেও নেই কোনো দেশ। দেশটিতে ১৪ লাখ ৭০ হাজার মানুষে করোনায় আক্রান্ত হিসেবে শনাক্ত হয়েছেন। আক্রান্তদের মধ্যে ৮৭ হাজার ৬০০ এর বেশি মানুষ মারা গেছে। সুস্থ হয়েছে তিন লাখের কিছু বেশি। এখনো প্রতিদিন হাজার হাজার মানুষ মারা যাচ্ছে যুক্তরাষ্ট্রে।

দুই হাজার গরীব-দুস্থ ব্যক্তিকে ত্রাণ দিলেন মান্নান খান

কুমারখালী প্রতিনিধি ॥ প্রাণঘাতি করোনা ভাইরাসের কারণে কর্মহীন দুই হাজার গরীব ও দুস্থ ব্যক্তিকে ব্যক্তিগত উদ্যোগে ত্রাণ সামগ্রী দিলেন, কুষ্টিয়ার কুমারখালী উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান ও উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি আব্দুল মান্নান খান। গতকাল শনিবার সকাল সাড়ে ৮টায় শহরের তরুণ মোড় এলাকা থেকে দুই হাজার প্যাকেট ত্রাণ সামগ্রী (চাল, ডাল, তেল, সেমাই, চিনি) পৌরসভা এলাকাসহ ১১টি ইউনিয়নের আওয়ামী লীগের নেতাদের হাতে তুলে দেওয়া হয়।  উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি ও উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান আব্দুল মান্নান খানের পক্ষে বাংলাদেশ ছাত্রলীগের কেন্দ্রীয় কমিটির সাবেক সহ-সম্পাদক জাকারিয়া খান জেমস পৌরসভাসহ ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের নেতাদের হাতে ত্রাণ সামগ্রী তুলে দেন। এ সময় উপজেলা ছাত্রলীগের সাবেক সভাপতি রাইসুল ইসলাম, উপজেলা আওয়ামী লীগের যুব ও ক্রীড়া বিষয়ক সম্পাদক মিজানুর রহমান জুয়েল, উপজেলা স্বেচ্ছাসেবক লীগের যুগ্ম আহবায়ক মাসুদ পারভেজ, হেলাল উদ্দিন, উপজেলা ছাত্রলীগের সাবেক সহ সভাপতি তুহিন হোসেন উপস্থিত ছিলেন। এ সময় সাবেক ছাত্রলীগ নেতা জাকারিয়া খান জেমস জানান, উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি আলহাজ্ব আব্দুল মান্নান খান এবার দুই হাজার পরিবারকে খাদ্য সহায়তা প্রদানের পাশাপাশি দেড়’শ নারীকে শাড়ী কাপড় ও এক’শ পুরুষকে লুঙ্গী উপহার দিচ্ছেন। এছাড়াও দলীয় সহযোগী সংগঠনের স্বেচ্ছাসেবী কর্মীদের মাঝে দেড় লক্ষ টাকা বিতরণের উদ্যোগ নিয়েছেন। এর আগে করোনা ভাইরাসের কারণে কর্মহীন ব্যক্তিসহ ১৩’শ গরীব অসহায় ও দুস্থদের মাঝে ত্রাণ সামগ্রী (৮ কেজি চাল, দুই কোজি  আলু, আধা কেজি ডাল, আধা কেজি তেল, আধা কেজি লবন ও ১টি সাবান) বিতরণ করেছেন।

চীনকে ‘একঘরে’ করতে ভারতকে কাছে টানার সুপারিশ যুক্তরাষ্ট্রে

ঢাকা অফিস ॥ করোনাভাইরাস নিয়ে তথ্যগোপন, প্রতারণা ও অসহযোগিতার অভিযোগে চীন থেকে বড় বড় শিল্প-কারখানাগুলো সরিয়ে নেয়ার দাবি উঠেছে যুক্তরাষ্ট্রে। পাশাপাশি, চীনের অর্থনৈতিক ও আঞ্চলিক প্রভাব কমাতে ভারত, ভিয়েতনাম, তাইওয়ানের সঙ্গে সামরিক সম্পর্ক জোরদার এবং জাপান-দক্ষিণ কোরিয়ার কাছে অস্ত্র বিক্রির সুপারিশ করা হয়েছে। সম্প্রতি করোনা মহামারির জন্য চীনকে দায়ী করতে ১৮টি পয়েন্টসহ বিশদ পরিকল্পনা প্রকাশ করেছেন মার্কিন সিনেটর থম তিলিস। তিনি বলেন, ‘চীন ইচ্ছাকৃতভাবে করোনার বিষয়টি ধামাচাপা দিয়ে রেখেছিল, যার কারণে বৈশ্বিক মহামারি তৈরি হয়েছে।’ তিলিসের মতে, আঞ্চলিকভাবে চীনকে একঘরে করতে বেইজিংয়ের ওপর চাপ বাড়াতে হবে। সেক্ষেত্রে চীনের পাকিস্তান ও উত্তর কোরিয়া-প্রীতির কথা মাথায় রেখে ভারত, ভিয়েতনাম, জাপান, দক্ষিণ কোরিয়ার মতো দেশগুলোকে কাছে টানার পরামর্শ দিয়েছেন তিনি। গত বৃহস্পতিবার পরিকল্পনা প্রকাশের সময় এ মার্কিন সিনেটর বলেন, ‘এটা যুক্তরাষ্ট্র ও বাকি বিশ্বের জাগ্রত হওয়ার সময়। করোনা নিয়ে মিথ্যাচারের জন্য চীন সরকারকে দায়ী করবে আমার পরিকল্পনা। চীনের ওপর নিষেধাজ্ঞা চাপানোর পাশাপাশি আমেরিকার অর্থনীতি, জনস্বাস্থ্য ও জাতীয় সুরক্ষা নিশ্চিত করবে এটি।’ সিনেটর তিলিসের পরিকল্পনায় প্রশান্ত মহাসাগরীয় অঞ্চলের জন্য নতুন কর্মসূচি প্রণয়নের পাশাপাশি মার্কিন সেনাবাহিনীকে দ্রুত ২০ বিলিয়ন ডলার দেয়ার আবেদনে সম্মতি দেয়ার আহ্বান জানানো হয়েছে। সেই সঙ্গে আঞ্চলিক বন্ধু রাষ্ট্রগুলোর সঙ্গে সামরিক সম্পর্ক আরও জোরদার করতে বলা হয়েছে। এর মধ্যে, জাপানের সামরিক বাহিনী নতুন করে গড়ে তোলায় উৎসাহপ্রদান এবং জাপান ও দক্ষিণ কোরিয়ার কাছে সমরাস্ত্র বিক্রির পরামর্শ দেয়া হয়েছে। এ রিপাবলিকান নেতার দাবি, ‘চীন থেকে শিল্প-কারখানাগুলো যুক্তরাষ্ট্রে নিয়ে আসা হোক এবং ধাপে ধাপে জোগানের জন্য চীনের উপর নির্ভরশীলতা কমানো হোক। চীনকে মার্কিন প্রযুক্তি চুরি করা থেকে আটকানো হোক এবং যুক্তরাষ্ট্রের প্রযুক্তিগত সুবিধা ব্যবহারেরর জন্য মার্কিন সংস্থাগুলোকে প্রণোদনা দেয়া হোক। চীনা হ্যাকার এবং নাশকতা রুখতে সাইবার সুরক্ষা জোরদার করা হোক।’ এছাড়া, ২০২২ সালে বেইজিংয়ে অনুষ্ঠিতব্য শীতকালীন অলিম্পিক অন্যত্র সরিয়ে নিতে আন্তর্জাতিক অলিম্পিক কমিটির কাছে ট্রাম্প প্রশাসনকে আনুষ্ঠানিক আবেদন জানানোরও দাবি জানিয়েছেন সিনেটর থম তিলিস।

ত্রাণ বিতরণে অনিয়ম করলে দলীয় পরিচয়েও রেহাই মিলবে না – কাদের

ঢাকা অফিস ॥ যারা ভাসমান, ঘর নেই, খোলা আকাশের নিচে বসবাস করে তাদের খুঁজে খুঁজে তালিকা করে ঈদের আগেই ত্রাণ সাহায্য দেওয়ার আহ্বান জানিয়েছেন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক এবং সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের। তিনি আরও বলেছেন, ‘ত্রাণ সহায়তা কর্মসূচির তালিকা প্রণয়নে কোনও ধরনের অনিয়ম সরকার বরদাশত করবে না। ত্রাণ বিতরণে যেই অনিয়ম করবে, দলীয় পরিচয় হলেও সে রেহাই পাবে না।‘ রাজধানীর বিভিন্ন ওয়ার্ডে ঢাকা মহানগর আওয়ামী লীগের ত্রাণ বিতরণ অনুষ্ঠানে ভিডিও কনফারেন্সিং এর মাধ্যমে সংযুক্ত হয়ে গতকাল শনিবার তিনি এসব কথা বলেন। বঙ্গবন্ধু এভিনিউয়ে দলের কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে এ কর্মসূচি অনুষ্ঠিত হয়। সীমাবদ্ধতা থাকা সত্ত্বেও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে করোনাভাইরাস মোকাবিলায় বাংলাদেশ সফল হবে আশা প্রকাশ করেন আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক। তিনি বলেন, ‘ঈদকে সামনে রেখে মানুষের শহর থেকে গ্রামে যাওয়ার প্রবণতা পরিস্থিতিকে আরও জটিল করে তুলতে পারে। পরিস্থিতি অবনতিশীল।’ শপিংমল ফেরিঘাটসহ বিভিন্ন পয়েন্টে ভিড় তৈরি করা থেকে বিরত থাকার আহ্বান জানান ওবায়দুল কাদের। তিনি বলেন, ‘স্বাস্থ্যবিধি ও সরকারি নির্দেশনা উপেক্ষা করে প্রকারান্তরে নিজেদের এবং চারপাশের মানুষের জীবনের গভীর অমানিশা ডেকে আনবেন না।’ এসময় উপস্থিত ছিলেন ঢাকা মহানগর দক্ষিণ আওয়ামী লীগের সভাপতি আবু আহমেদ মান্নাফি সাধারণ সম্পাদক হুমায়ুন কবিরসহ অন্যান্য নেতারা।

গাংনীতে মোটরসাইকেলের ধাক্কায় শিশু নিহত

গাংনী প্রতিনিধি ॥ মেহেরপুর জেলার গাংনীতে দ্রুতগামি মোটর সাইকেলের ধাক্কায় সাদিক হোসেন (৭) নামের এক শিশু নিহত হয়েছে। নিহত সাদিক গাংনী উপজেলার বামন্দী ইউনিয়নের তেরাইল গ্রামের সম্রাট আলীর ছেলে। গতকাল শনিবার বিকেলে কুষ্টিয়া মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মারা যায়। এর আগে দুপুর ২টার দিকে মেহেরপুর-কুষ্টিয়া সড়কের তেরাইল গ্রামে দ্রুতগামি মোটরসাইকেলের ধাক্কায় শিশু সাদিক আহত হয়েছিল। স্থানীয় যুবক সোহেল রানা  জানান শিশু সাদিক তেরাইল গ্রামের একটি সড়ক পার হচ্ছিল। এসময় গাংনী গাংনী উপজেলা শহরের দিক থেকে আসা দ্রুতগামি মোটরসাইকেল তাকে ধাক্কা দিলে গুরুতরভাবে আহত হয়। পথচারীরা তাকে উদ্ধার করে গাংনী উপজেলা স্বাস্থ্যকমপ্লেক্সে নেয়। এসময় তার শারীরিক অবস্থার অবনতি দেখা দিলে সেখান থেকে কুষ্টিয়া মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। বিকেলে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মারা যায়।

গাংনীতে লিচু বাগান দখল নিয়ে সংঘর্ষে ২জন নিহত – আহত-১

গাংনী প্রতিনিধি ॥ মেহেরপুর জেলার গাংনী উপজেলার কাজীপুর গ্রামের  গোলাম বাজার এলাকার একটি মাঠে লিচু বাগান দখল নিয়ে দু’পক্ষের মধ্যে সংঘর্ষের ঘটনা ঘটেছে। এ ঘটনায় ঘটনাস্থলেই উভয়পক্ষের ২জন নিহত হয়েছেন। আহত হয়েছেন আরো ১জন। নিহতরা হলেন-কাজীপুর গ্রামের খবির উদ্দীনের ছেলে ডাবলু হোসেন (৪৭) ও সাহেবনগর গ্রামের  সেকেন্দারের ছেলে সানাউল্লাহ (৫০)। আহত হয়েছেন কাজীপুর গ্রামের আব্দুল জলিলের ছেলে খবির উদ্দীন (৬০)। এ রিপোর্ট লেখা পর্যন্ত নিহত দু’জনের লাশ ঘটনাস্থলে ছিল। এবং আহতকে উদ্ধার করে কুষ্টিয়া মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হয়েছে। গতকাল শনিবার বিকেল ৫টার দিকে কাজীপুর গ্রামের গোলাম বাজার এলাকার একটি লিচু বাগানে সংঘর্ষে হতাহত হয়। স্থানীয়রা জানান কাজীপুর গ্রামের গোলাম বাজার এলাকায় ৩ বিঘা জমির মালিকানা নিয়ে খবির উদ্দীনের সাথে বেশ কয়েক বছর যাবত সাহেবনগর গ্রামের সানাউল্লাহসহ তার লোকজনের  মামলা চলে আসছে। সম্প্রতি মামলার রায় পেয়েছেন খবির উদ্দীন। এ রায়ের বলে খবির ও তার ছেলে ডাবলু লিচু বাগান দখল নেন। গতকাল শনিবার বিকেলে খবির ও তার ছেলে ডাবলু ওই লিচু বাগান পরিচর্যা করতে গেলে, প্রতিপক্ষ সেকেন্দার, লাল্টু ও হাবিব মেম্বাররা লাঠি-সোটা নিয়ে তাদের হামলা করেন। পরে দু’পক্ষের মধ্যে রক্তক্ষয়ী সংঘর্ষে বাধে। এসময় ঘটনাস্থলেই ডাবলু ও অন্যপক্ষের সানাউল্লাহ নিহত হয়। আহত হয় ডাবলুর বাবা খবির। তাকে স্থানীয়রা উদ্ধার করে কুষ্টিয়া মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নিয়ে যান। এদিকে খবর মেহেরপুর পুলিশ সুপার এসএম মোরাদ হোসেন, সহকারী পুলিশ সুপার মোস্তাফিজুর রহমান, গাংনী থানার ওসি ওবাইদুর রহমান ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছেন। গাংনী থানার ওসি ওবাইদুর রহমান জানান লাশ উদ্ধার করা হয়েছে।

ত্রাণের টাকাও মেরে খাচ্ছে সরকারের লোকেরা – রিজভী

ঢাকা অফিস ॥ করোনাভাইরাসের সংকটে গরিব মানুষের জন্য ত্রাণের টাকাও সরকারের লোকেরা মেরে খাচ্ছে বলে অভিযোগ করেছেন বিএনপির সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী। তিনি বলেন, সরকারের লোকেরা নির্ধারিত আড়াই হাজার টাকা থেকে ৫০০ টাকা করে রেখে দিচ্ছে। গতকাল শনিবার দুপুরে রাজধানীর জয়কালী মন্দির সংলগ্ন কাপ্তান বাজার এলাকায় বিএনপি নেতা হামিদুর রহমান হামিদের উদ্যোগে ত্রাণ বিতরণের সময় প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন। এ সময় ঢাকা মহানগর দক্ষিণ বিএনপির সাধারণ সম্পাদক কাজী আবুল বাশারসহ বিভিন্ন পর্যায়ের নেতারা উপস্থিত ছিলেন। রুহুল কবির রিজভী বলেন, বর্তমান সরকার সংকট সমাধান করে না, সংকট সৃষ্টি করে। সংকট সমাধান করলে ত্রাণ লুটপাট হতো না। করোনাভাইরাস মহামারি আকার ধারণ করতে পারতো না। তিনি বলেন, লকডাউন শিথিল করে সারাদেশে করোনাভাইরাস ছড়িয়ে দিতে সুযোগ সৃষ্টি করে দিয়েছে সরকার। প্রতিদিন হাজারের বেশি লোক আক্রান্ত হচ্ছে। আগে প্রতিরোধ করার ব্যবস্থা ছিল সরকার তা করেনি। সরকার করোনাভাইরাস মোকাবেলায় সম্পূর্ণ ব্যর্থ হয়েছে। রিজভী বলেন, বিএনপি চেয়ারপারসন দেশনেত্রী বেগম খালেদা জিয়া এবং ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক রহমানের নির্দেশে প্রত্যেক জায়গায় আমাদের সামর্থ্য অনুযায়ী পাড়ায় পাড়ায়, মহল্লায় মহল্লায় ত্রাণ বিতরণ অব্যাহত রয়েছে। আমাদেরকে সরকারের ত্রাণ দেয়া হয় না। আমাদের পকেটের টাকা দিয়ে খাদ্যসামগ্রী কিনে অসহায় মানুষদের মধ্যে বিতরণ করছি। আর সরকারের ত্রাণ গরিব মানুষ পাচ্ছে না। সরকারের ত্রাণ চলে যাচ্ছে আওয়ামী লীগ নেতা, তাদের দলীয় চেয়ারম্যান মেম্বারদের বাড়িতে। অপরদিকে আমরা যখন প্রাণ দিতে যাচ্ছি তখন আমাদের নেতাকর্মীদের গুম করা হচ্ছে। মিথ্যা মামলা দিয়ে গ্রেফতার করা হচ্ছে। তারপর আমরা বসে নেই। আমরা মানুষের পাশে আছি।

অভিনেত্রী অপ্সরা সুহির আজ জন্মদিন

নিজ সংবাদ ॥ এই সময়ের অন্যতম প্রতিভাময়ী টিভি অভিনেত্রী অপ্সরা সুহি । কুষ্টিয়ার মেয়ে সুহি ২০১৬ সালে নাট্যপরিচালক জি.এম সৈকতের মাধ্যমে টিভি মিডিয়াতে প্রদার্পণ করেন। সুহি এই পর্যন্ত সাতটি একক নাটক, চারটি টেলিফিল্ম, তিনটি ধারাবাহিক নাটকে প্রধান নায়িকা চরিত্রে অভিনয় করেছেন। ‘মন  যেখানে হৃদয় সেখানে’ টিলিফিল্মে অভিনয় করে দর্শকের নজরে আসেন। জনপ্রিয় অভিনেতা  আমিন খান, ডি এ তায়েব, ইমন, জয়, কল্যাণ, নিলয়, শিপন মিত্র, সাব্বির আহমেদ, ভারতের জনপ্রিয় অভিনেতা তাপস পাল, তথাগত, রাজিব বোসসহ অনেক অভিনেতার সঙ্গে অভিনয় করেছেন তিনি। বর্তমানে সুহি বড় পার্দায় কাজ করার জন্য প্রস্তুতি নিচ্ছেন। বর্তমানে মানবতার কল্যাণ ফাউন্ডেশনের মাহাসচিবের দায়িত্ব পালন করছেন তিনি। সুহি বলেন, এত অল্প সময়ে এত ভালো কাজ করবো ভাবতে পারিনি। অভিনয় ও পড়াশোনার পাশাপাশি মানবতার কল্যাণ ফাউন্ডেশনের একজন কর্মী হয়ে অসহায় ও অসুস্থ মানুষের পাশে দাড়াঁতে চাই। সবাই আমার জন্য দোয়া করবেন। আজ রবিবার অপ্সরা সুহির জন্মদিন উপলক্ষ্যে সুহি কুষ্টিয়ার একটি বৃদ্ধাশ্রমে বৃদ্ধ  মায়েদের জন্য বাসা থেকে নিজে রান্না করে তাদেরকে খাওয়াবেন। মহামারী করোনা পরিস্থিতিতে সকলে নিরাপদে থাকার অনুরোধ জানান।

আরিফুল ইসলাম’র ব্যক্তিগত উদ্যোগে তালবাড়িয়ার আরও দেড়শতাধিক দুঃস্থ মানুষ পেল খাদ্য সহায়তা

নিয়ামুল হক ॥ মহামারী  করোনা ভাইরাস এর  প্রাদুর্ভাবে  কর্মহীন মানুষের  পাশে থাকার লক্ষ্যে কুষ্টিয়ার মিরপুর উপজেলার তালবাড়িয়ায় ইউনিয়ন পরিষদের সাবেক চেয়ারম্যান মৃত আমিন উদ্দিন সর্দ্দার’র সুযোগ্য পুত্র বিশিষ্ট সমাজসেবক ও তালবাড়িয়া উচ্চ মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের সভাপতি আরিফুল ইসলামের ব্যক্তিগত উদ্যোগে ৩য় দফায় আরও দেড়শত গরীব অসহায় দুস্থদের মাঝে খাদ্য সামগ্রী বিতরণ করা হয়েছে। গতকাল শনিবার তালবাড়িয়ার নিজস্ব বাসভবনের সামনে ইউনিয়নের বিভিন্ন ওয়ার্ডের  দেড়শতাধিক দুস্থ গরিব অসহায় পরিবারের মাঝে এসব খাদ্য সামগ্রী বিতরণ করেন। সমাজসেবক আরিফুল ইসলাম জানান, করোনার কারনে দিনে দিনে অসহায়দের আরও খাবারের অভাব বাড়ছে। পবিত্র ঈদুল ফিতরের আগে যাতে করে কিছু খাদ্য সহায়তা পেয়ে ঈদ উৎযাপন করতে পারে সে লক্ষ্যে এ সব অসহায়দের পাশে থাকতে পারাটায় উচিৎ বলে মনে করি। বর্তমান করোনা পরিস্থিতে আর্তমানবতার সেবায় সবাইকে এগিয়ে আসতে হবে, আমার এ উদ্দ্যেগ অব্যাহত থাকবে। খাদ্য সামগ্রী বিতরণের সময় উপস্থিত ছিলেন, স্থানীয় নেতা পিন্টু খাঁ, সমাজ সেবক ময়েন সর্দ্দার, আমতুল সর্দ্দার, চাঁড়–লিয়া ওয়ার্ড নেতা সাকিলসহ সমাজের গন্যমান্য ব্যক্তিরা।

মিরপুরে তরমুজের উপরে মাঠ দিবস

আমলা অফিস ॥ কুষ্টিয়ার মিরপুরে ব¬াকবেরী জাতের তরমুজ চাষের উপরে মাঠ দিবস অনুষ্ঠিত হয়েছে। গতকাল শনিবার বেলা ১১টায় মিরপুর উপজেলার ফুলবাড়ীয়া এলাকায় উপজেলা কৃষি অফিসের আয়োজনে বৃহত্তর কুষ্টিয়া ও যশোর অঞ্চল কৃষি উন্নয়ন প্রকল্পের আওতায় তরমুজ প্রদর্শনীর এ মাঠ দিবস অনুষ্ঠিত হয়। এতে মিরপুর উপজেলা কৃষি সম্প্রসারণ কর্মকর্তা সাবিহা সুলতানার সভাপতিত্বে  প্রধান অতিথির বক্তব্য রাখে জেলা কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের অতিরিক্তি উপ-পরিচালক একেএম হাসিবুল ইসলাম। অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথির বক্তব্য রাখেন বৃহত্তর কুষ্টিয়া ও যশোর অঞ্চল কৃষি উন্নয়ন প্রকল্পের উপ-পরিচালক সেলিম হোসেন, যুবলীগ নেতা শাকিলুর রহমান বিটু, উপসহকারী কৃষি কর্মকর্তা মাসুদ পারভেজ প্রমুখ।

ভেনিজুয়েলায় যাচ্ছে ইরানি তেল, যুক্তরাষ্ট্রের হুমকি

ঢাকা অফিস ॥ ইরানি জ¦ালানী তেলবাহী একটি জাহাজ ভেনিজুয়েলায় যাচ্ছে বলে খবর প্রকাশিত হওয়ার পর যুক্তরাষ্ট্র উষ্মা প্রকাশ করেছে। ইরান ও ভেনিজুয়েলা- এই দুই দেশের জ¦ালানী খাতের ওপরই যুক্তরাষ্ট্রের নিষেধাজ্ঞা রয়েছে। একজন মার্কিন কর্মকর্তা বলেছেন, এই ‘অনাহূত’ ঘটনার বিরুদ্ধে ‘ব্যবস্থা’ নেবে ওয়াশিংটন। বার্তা সংস্থা রয়টার্স শুক্রবার এক প্রতিবেদনে জানিয়েছে, ইরানি পতাকাবাহী তেল ট্যাংকার ‘ক্ল্যাভেল’ ল্যাটিন আমেরিকার দেশ ভেনিজুয়েলার উদ্দেশ্যে যাত্রা শুরু করেছে। খবরে বলা হয়েছে, ট্যাংকারটি গত মার্চ মাসের শেষ নাগাদ ইরানের বন্দরআবাস শহর থেকে তেল সংগ্রহ করে এবং বুধবার এটি সুয়েজ খাল অতিক্রম করে আটলান্টিক মহাসাগরে প্রবেশ করেছে। বিভিন্ন গণমাধ্যমে স্যাটেলাইট থেকে তোলা ইরানি তেল ট্যাংকারটির এই ছবি প্রকাশিত হয়েছে। মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প প্রশাসনের একজন কর্মকর্তা বলেছেন, ইরানের তেল বিক্রির এই প্রচেষ্টার বিরুদ্ধে ওয়াশিংটন ব্যবস্থা নেয়ার কথা বিবেচনা করছে। তবে বার্তা সংস্থাটি ওই কর্মকর্তার নাম প্রকাশ করেনি। কর্মকর্তাটি বলেন, মার্কিন সরকার ‘এ ব্যাপারে প্রায় নিশ্চিত’ যে, আর্থিক সংকটে জর্জরিত ভেনিজুয়েলা সরকার এই তেলের বিনিময় হিসেবে ইরানকে স্বর্ণ প্রদান করবে। ওই মার্কিন কর্মকর্তা দাবি করেন, ‘এটি যে শুধু আমেরিকার কাছে একটি অনাহূত বিষয় তাই নয় বরং ল্যাটিন আমেরিকার দেশগুলির কাছেও এ ঘটনা অনভিপ্রেত। আমরা ভেবে দেখছি এর বিরুদ্ধে কি পদক্ষেপ নেয়া যায়।’ ২০১৮ সালের মে মাসে যুক্তরাষ্ট্র ইরানের পরমাণু সমঝোতা থেকে বেরিয়ে গিয়ে তেহরানের ওপর কঠোর নিষেধাজ্ঞা আরোপ করে।

সফরে রোজা না রাখার অনুমতি

আ.ফ.ম নুরুল কাদের ॥ মাহে রমজানুল মোবারকের আজ ২৩তম দিন। আল্লাহ তায়ালা এ মাসের রোজা ‘প্রত্যেক সম মুসলিম নর-নারীর ওপর ফরজ করেছেন। তবে এ থেকে সাময়িকভাবে হলেও ছাড় দেয়া হয়েছে  রোগী ও মুসাফিরকে। অসুস্থতা যেমন সিয়াম পালন থেকে ছাড় পাওয়ার একটি কারণ, তেমনি আরেক কারণ সফর। এ প্রসঙ্গে কুরআন মজিদে ইরশাদ হয়েছে, যে ব্যক্তি এ মাস প্রত্যক্ষ করবে, তাকে এতে রোজা রাখতে হবে। আর যে ব্যক্তি অসুস্থ হয়, কিংবা সফরে থাকে সে অন্যান্য দিন থেকে এ সংখ্যা পূরণ করবে। (সূরা বাকারা, আয়াত ১৮৫)। তবে সালাত ও সিয়ামে ছাড় পাওয়ার জন্য সফরের দূরত্ব ও মেয়াদ বিবেচ্য বিষয়। নামমাত্র ভ্রমণ ও প্রবাস জীবনকে যেন ইবাদতে বিশেষ সুবিধা লাভের কারণ হিসেবে কেউ ব্যবহার করতে না চায়, সেজন্য এসব শর্ত নির্ধারণ করা হয়েছে। উল্লে¬খযোগ্য দূরত্ব একটি শর্ত হিসেবে গণ্য। হেঁটে স্বাভাবিক গতিতে তিন দিনে যে পরিমাণ পথ অতিক্রম করার রীতি তখনকার আরবে প্রচলিত ছিল, সেটাকে এ ব্যাপারে বিবেচনায় নেয়া হয়েছে। এই তিন দিনের পথ বা তিন মঞ্জিল পরবর্তীকালের পরিমাপে ৪৮ মাইল বা ৭৮ কিলোমিটার সাব্যস্ত করা হয়। তা ছাড়া নিছক প্রবাস জীবন নয়, বরং চলমান অবস্থা শর্ত। তাই সফরকালে উল্লে¬খযোগ্য সময় বা কমপে ১৫ দিন যাত্রাবিরতির কারণে সালাতে কসর ও সিয়ামে ছাড়ের হুকুম রহিত হয়ে যায়। সফর ক্লান্তিকর হওয়াই স্বাভাবিক। জাগতিক ক্রিয়াকলাপের প্রয়োজনে মানুষকে সফরে যেতেই হয়। তাই ইসলামি শরিয়তে মুমিন বান্দাদের জন্য সফরকালে সালাত ও সিয়াম আদায়ে কিছুটা সুবিধা দেয়া হয়েছে। যদি কারো সফর ব্যতিক্রমী হিসেবে আরামদায়ক হয়ও, তবুও তার জন্য এ সুবিধা রহিত হবে না। একজন তাবেয়ি এ সম্পর্কে প্রশ্ন করেছিলেন হজরত ওমর ফারুককে। জবাবে হজরত ওমর ফারুক রাজিয়াল্লাহু আনহু বলেন, তুমি যেমন আমাকে  প্রশ্ন করেছ, আমিও তেমনি আল্লাহর রাসূলকে এ প্রশ্ন করেছিলাম। বলেছিলাম, হে আল্লাহর রাসূল, আল্লাহ তায়ালা ইরশাদ করেছেনÑ ‘যখন  তোমরা সফরে থাকবে, তখন তোমরা যদি আশঙ্কা করো যে কাফেররা  তোমাদের বিপদে ফেলবে, তাহলে নামাজে কসর করায় তোমাদের  কোনো অন্যায় হবে না।’ এখন তো আমরা নিরাপদ হয়ে গেছি। জবাবে মহানবী সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল¬াম ইরশাদ করেন, এটা আল্লাহ তায়ালার দান। এ দান তোমরা গ্রহণ কর। এ জন্য ইমাম আবু হানিফার মতে সফরে নামাজের কসর করা বাধ্যতামূলক। অবশ্য অন্য ইমামগণ তা ঐচ্ছিক বলেছেন। কিন্তু সফরে রোজা রাখা না রাখা দু’টিরই অনুমতি আছে, এ ব্যাপারে সবাই একমত। কোনটি ভালোÑ রাখা নাকি না রাখাÑ  সে সম্পর্কে দুই ধরনের বর্ণনা পাওয়া যায়। এক হাদিসে দেখা যায়, আল্লাহর রাসূল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল¬াম ইরশাদ করেছেন, সফরে  রোজা রাখা খুব ভালো। কিন্তু আরেক হাদিসে তিনি ইরশাদ করেন, সফরে রোজা রাখা নেক কাজ নয়। মহানবী সাল¬াল¬াহু আলাইহি ওয়া সাল¬ামের এ উক্তির প্রেক্ষাপট থেকে বিষয়টি পরিষ্কার হয়। তা এই যে, এক সফরে রাসূলুল¬াহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল¬াম এক জায়গায় লোকজনের ভিড় দেখে কারণ জিজ্ঞেস করলেন। সেখানে একজনকে ছায়ায় রেখে সেবা করা হচ্ছে। তার ব্যাপারে জিজ্ঞেস করে জানতে পারলেন লোকটি রোজা রাখার কারণে ক্রান্ত হয়ে পড়েছে। তখন তিনি বললেন, সফরে রোজা রাখা নেক কাজ নয়। আরেক সফরে সাহাবায়ে  কেরামের কেউ কেউ রোজা রাখলেন, আবার  কেউ কেউ রোজা রাখলেন না। এক জায়গায় যাত্রাবিরতি করলে রোজাদারেরা ক্লান্ত  হয়ে পড়লেন। আর যারা রোজা রাখেননি, তারাই তাঁবু টাঙানো, বাহনগুলো সামলানো ইত্যাদি সব কাজ করলেন। তখন মহানবী সাল¬াল¬াহু আলাইহি ওয়া সাল¬াম ইরশাদ করলেন, বেরোজাদারেরা সব পুণ্য হাসিল করল।

রমজান মাসেই সংঘটিত হয়েছে ইসলামের ইতিহাসের দু’টি অত্যন্ত তাৎপর্যপূর্ণ জিহাদ। দ্বিতীয় হিজরির রমজান মাসে সংঘটিত হয় বিশ্বের ইতিহাসে সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ যুদ্ধগুলোর একটি, যা বদরের যুদ্ধ নামে প্রসিদ্ধ। আরেক জিহাদ মক্কা বিজয়ের। উভয় যুদ্ধ প্রসঙ্গে সাহাবায়ে  কেরাম বর্ণনা করেন, আমরা রোজা রেখেই রওনা হয়েছিলাম। চলতে চলতে যখন শক্র বাহিনীর একেবারে কাছে পৌঁছলাম, তখন আল্লাহর রাসূল আমাদের রোজা না রাখার আদেশ দিলেন। তিনি নিজেও রোজা রাখলেন না। আরেক জিহাদ প্রসঙ্গে সাহাবায়ে কেরাম বলেন, আমরা রোজা রেখেই রওনা হলাম। কয়েক দিনের সফর শেষে আমাদের মধ্যে  কেউ কেউ অবসন্ন হয়ে পড়ল। এ খবর আল্লাহর রাসূলের কাছে গেলে তিনি রোজা ভেঙে ফেললেন এবং সবাইকে রোজা ভেঙে ফেলার আদেশ করলেন। এর পরেও কেউ কেউ দিনটি শেষ করতে চাইলেন। মহানবী সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল¬াম এতে অত্যন্ত অসন্তোষ প্রকাশ করলেন।  মোটকথা সফরে রোজা না রাখার অনুমতি আছে। তবে যদি কারো কষ্ট না হয়, তাহলে রোজা রাখা ভালো। আর যদি রোজা রাখার কারণে বেশি কষ্ট হয়, এমন কি সফরের উদ্দেশ্য ব্যাহত হওয়ার সম্ভাবনা থাকে, তাহলে না রাখাই ভালো। পরে এই রোজাগুলো আদায় করতে হবে। কিন্তু রোজা না রাখার অনুমতি থাকলেও রমজান মাসের মর্যাদা রক্ষা করতে হবে। এ জন্য প্রকাশ্যে পানাহার করা চলবে না বরং তা আড়ালে সারতে হবে। ঠিক এই হুকুম কোনো কারণে রোজা নষ্ট হয়ে গেলেও। সে ক্ষেত্রেও দিনের বাকি সময়টুকু রোজাদারের মতোই কাটাতে হবে।

যে কোন মুহুর্তে যোগাযোগ বিচ্ছিন্ন

কুষ্টিয়া-হরিপুর শেখ রাসেল সেতুর এ্যাপ্রোসে ধ্বস বালুর ট্রলিতে

নিজ সংবাদ ॥ শতকোটি টাকা ব্যায়ে নির্মিত কুষ্টিয়া-হরিপুর শেখ রাসেল সেতুর উত্তরাংশের (হরিপুরাংশের) মূল সেতুর প্রারম্ভিক এ্যাবার্টমেন্টে নির্মিত এ্যাপ্রোস সড়ক যে কোন মুহুর্তে ধ্বসে গিয়ে মূল সেতু থেকে সংযোগ রাস্তার যোগাযোগ বিচ্ছিন্ন হয়ে যেতে পারে। দুইদিন পূর্বে প্রবল বৃষ্টির পানির স্রোতে এপ্রোচ সংলগ্ন রাস্তাটি ধ্বসে যাওয়ায় রাস্তাটি সম্পূর্নরূপে যোগাযোগ বিচ্ছিন্ন হয়ে যায়। কিন্তু বালু দস্যুদের বালুবাহী ট্রলি স্থানীয়দের আপত্তিকে তুচ্ছ করে এপ্রোচ সড়কের ঢালুতে উঠিয়ে দিয়ে চলাচল করার কারণে এমন ক্ষতি হয়েছে বলে স্থানীয় প্রত্যক্ষদর্শীদের অভিযোগ। সংবাদ জানার পর স্থানীয় সরকার প্রকৌশল অধিদপ্তর কুষ্টিয়ার নির্বাহী প্রকৌশলীর মতে, চরম ঝুকির মধ্যে পড়েছে এপ্রোচ সড়কটি। দ্রুত ব্যবস্থা না নিলে অপুরনীয় ক্ষতির আশংকা রয়েছে। কারণ সমতল ভুমি থেকে ১৫ বা ২০ফুট উচ্চতার এই এপ্রোস সড়ক ধ্বসে পড়লে স্থানীয় জনসবতি চাপা পড়ার ঘটনার সাথে প্রানহানীর আশংকাও রয়েছে। স্থানীয়দের অভিযোগ, কুষ্টিয়া সদর উপজেলার ১নং হাটশ হরিপুর ইউনিয়নবাসীর দুই দশকের দাবিতে মাত্র তিন বছর পূর্বে শতকোটি টাকা ব্যয়ে নির্মান শেষে স্থানীয় সরকার প্রকৌশল বিভাগ হরিপুরবাসীর স্বপ্নের কুষ্টিয়া-হরিপুর শেখ রাসেল সেতু জনগনের চলাচলের জন্য অবমুক্ত করেন দেয়। স্থানীয় সরকার মন্ত্রনালয়ের মন্ত্রী ইঞ্জিনিয়ার মোশাররফ হোসেন আনুষ্ঠানিক উদ্বোধনের পর থেকেই সেতুটির উপর যতরকম অত্যাচার ও ক্ষতির কারণ একমাত্র বালুবাহী ট্রলি। ইতোপূর্বে স্থানীয়রা একাধিকবার আপত্তি ও প্রতিবাদ জানালেও কিছুই তোয়াক্কা করেনি বালুখোর চক্র। বে-পরোয়া এসব ট্রলি চালিয়ে একাধিকবার এই সেতুর লাইট পোষ্ট, বিদ্যুৎ কেবলসহ বিভিন্ন অংশের ক্ষতি সাধন করলেও কারও সাহস নাই কিছু বলার। এমনকি এসব নিয়ে কথা বলতে গিয়ে পুলিশী হয়রানীর শিকার হতে হয় বলে অভিযোগ স্থানীয়দের। তবে বালু উত্তোলনকারী হাটশ হরিপুর ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতি মুস্তাফিজুর রহমান মিলন মন্ডল এবং সাধারণ সম্পাদক হাজি আরিফুল ইসলাম বালুবাহী ট্রলির কারণে সেতুর এ্যাপ্রোচ সড়ক ধ্বসের দায় কে নেবেন এমন প্রশ্নের কোন সদুত্তোর দিতে পারেন নি। এ বিষয়ে ইউপি চেয়ারম্যান এম সম্পা মাহমুদ বলেন, ওইখানে ব্রীজের ঢালু ধ্বসে গেছে এমন বিষয় আমার জানা নেই। তবে আপনি বলছেন আমি শহর থেকে ফেরার পথে দেখে যাবো। অবৈধ বালুবাহী ট্রলির কারণে এই ধ্বসের দায় কে নেবেন এমন প্রশ্নের কোন উত্তর দিতে পারলেন না তিনি।  স্থানীয় সংসদ সদস্য মনোনীত কুষ্টিয়া-হরিপুর শেখ রাসেল সেতুর নির্মানকালীন সময় থেকে তদারককারী জেলা আওয়ামী লীগের দপ্তর সম্পাদক তরিকুল ইসলাম মানিক বলেন, ব্রীজের ঢালের উপর দিয়ে ট্রলি চালাবে কেন ? ঠিক আছে আমি শুনলাম এমুহুর্তে একটু বাইরে আছি তাই আগামী রবিবার একসময় গিয়ে আমি দেখব। কুষ্টিয়া জেলা প্রশাসনের নির্বাহী ম্যাজিষ্ট্রেট আবু রাসেল বলেন, যে কোন সেতুর নিরাপদ দরত্বের মধ্যে থেকে কোনভাবেই মাটি বা বালু উত্তোলন সম্পূর্নরূপে নিষিদ্ধ। কেউ এই আইন লংঘন করলে তার বিরুদ্ধে ফৌজদারি অপরাধে মামলাসহ আইনগত ব্যবস্থা গৃহীত হবে। তিনি বলেন, সেতুর নিরাপদ দুরত্ব হিসেবে তার রিভার্টমেন্ট জোন (প্রতি ১মিটার সেতুর দৈর্ঘের অনুপাতে আপ স্টীমে ধরা হয় ১দশমিক ৫মিটার এবং ডাউন ষ্টীমে হবে দশমিক ৫মিটার) কে  বোঝানো হয়। বাংলাদেশ পানি উন্নয়ন বোর্ড কুষ্টিয়ার নির্বাহী প্রকৌশলী পিযুষ কৃষ্ণ কুন্ডু বলেন, ব্রিজের রিভার্টমেন্ট জোন এলাকা থেকে কোন ভাবেই বালু বা মাটি কাটা যাবে না। এরা কে বা কারা এখানে অবৈধভাবে বালু উত্তোলন করে ব্রীজকে ঝুঁকির মধ্যে ফেলছে তা আমি সঠিক জানি না। খোঁজ নিয়ে ব্যবস্থা নেয়া হবে।  কুষ্টিয়া-হরিপুর শেখ রাসেল সেতু নির্মাণকারী বিভাগ স্থানীয় সরকার প্রকৌশল অধিদপ্তর কুষ্টিয়ার নির্বাহী প্রকৌশলী মো: জাহিদুর রহমান মন্ডল বলেন- সংবাদটি জানানোর জন্য ধন্যবাদ, এমুহুর্তে আমি একটু দুরে আছি। তবে তাৎক্ষনিক আমার থানা ইঞ্জিনিয়ারকে সেখানে যেতে বলছি। সরেজমিন দেখার পর যা করনীয় তার উদ্যোগ নেয়া হবে।

ঢাকাস্থ মিরপুর উপজেলা সমিতির খাদ্য সামগ্রী বিতরণ

আমলা অফিস ॥ কুষ্টিয়ার মিরপুরে ঢাকাস্থ মিরপুর উপজেলা সমিতির উদ্যোগে করোনা মহামারীতে অসহায় মানুষের জন্য মানবিক সহায়তা কার্যক্রমের আওতায় খাদ্য সামগ্রী বিতরণ করা হয়েছে। গতকাল শনিবার (১৬ মে) সকাল সাড়ে ১১টায় উপজেলা চত্বরে এ খাদ্য সামগ্রী বিতরণ কার্যক্রমের উদ্বোধন করা হয়। খাদ্য সামগ্রী বিতরণ অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি ছিলেন উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান কামারুল আরেফিন। এতে বিশেষ অতিথি ছিলেন উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা লিংকন বিশ্বাস, দিশা সংস্থার প্রধান নির্বাহী রবিউল ইসলাম, দৈনিক দেশতথ্য পত্রিকার প্রকাশক ও সম্পাদক আব্দুল বারী মোল¬া, উপজেলা পরিষদের ভাইস-চেয়ারম্যান আবুল কাশেম জোয়ার্দ্দার, মহিলা ভাইস- চেয়ারম্যান মর্জিনা খাতুন, বাংলাদেশ ব্যাংকের উপ-পরিচালক নাজমুল হুদা, বাংলাদেশ সুইমিং ফেডারেশনের সাবেক যুগ্ম-সাধারণ সম্পাদক আমিরুল ইসলাম, গার্মেন্টস ব্যবসায়ী আব্দুর রকিব মিঠু প্রমুখ। এ সময়ে উপজেলার ১ হাজার ৪শ’টি পরিবারের মাঝে খাদ্যসামগ্রি বিতরণ করা হয়। এর মধ্যে চাল, ডাল, তেল, চিনি, আলু, সেমাই, সাবানসহ নিত্যপ্রয়োজনীয় দ্রব্য সামগ্রি রয়েছে।

কুমারখালীতে মোবাইল কোর্টের অভিযানে এগারো ব্যবসায়ীকে জরিমানা

কুমারখালী প্রতিনিধি ॥ সরকারি আদেশ অমান্য করে দোকান খোলা রেখে ব্যবসা পরিচালনা করায় কুমারখালী বাজারে মোবাইল কোর্টের অভিযানে ১১ জন ব্যবসায়ীকে ৩১ হাজার টাকা জরিমানা করা হয়েছে। আজ সকালে কুমারখালী উপজেলা নির্বাহী অফিসার ও নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট রাজীবুল ইসলাম খান এই মোবাইল কোর্ট পরিচালনা করেন। এ সময় থানার অফিসার ইনচার্জ মজিবুর রহমান সঙ্গীয় ফোর্সসহ উপস্থিত ছিলেন।  মোবাইল কোর্ট পরিচালনাকালে উপজেলা নির্বাহী অফিসার ব্যবসায়ীসহ বাজারে আগতদের উদ্দেশ্যে বলেছেন, দেশে করোনা ভাইরাস সংক্রমণ বিপজ্জনক পরিস্থিতির দিকে যাচ্ছে। তাই নিজের জীবন বাঁচাতে হাট বাজার এড়িয়ে চলা উত্তম। মানুষের স্বার্থে সরকারি আদেশ মেনে চলুন এবং সরকারি নির্দেশ মেনে ব্যবসা পরিচালনা করুন। এ সময় বাজারের অনেক ব্যবসায়ীকে সতর্ক করেন ইউএনও রাজীবুল ইসলাম খান।

দৌলতপুরে ৩টি বোমা উদ্ধার

দৌলতপুর প্রতিনিধি ॥ কুষ্টিয়ার দৌলতপুরে ৩টি বোমা সদৃশ্য বস্তু উদ্ধার হয়েছে। গতকাল শনিবার সকালে উপজেলার খলিশাকুন্ডি পুরাতন হাটপাড়া গোরস্থান সংলগ্ন প্রবাসী সিরাজুল ইসলামের বাড়ির গেটের সামনের থেকে লাল টেপ দিয়ে মুড়ানো ৩টি বোমা সদৃশ্য বস্তু উদ্ধার করেছে পুলিশ। এসময় একটি চিরকুট উদ্ধার করা হয়েছে। তবে চিরকুটে কি লেখা ছিল তা জানা যায়নি। পুলিশ ও স্থানীয়রা জানায়, শুক্রবার রাতে কে বা কারা লাল টেপ দিয়ে মুড়ানো ৩টি বোমা সদৃশ্য বস্তু ও একটি চিরকুট প্রবাসী সিরাজুল ইসলামের বাড়ির গেটের সামনে রেখে যায়। গতকাল শনিবার সকালে গেট খুলে বাড়ির লোকজন বোমা ৩টি ও কাগজে লেখা চিরকুট পড়ে থাকতে দেখে পুলিশকে খবর দেয়। খবর পেয়ে খলিশাকুন্ডি ক্যাম্পের পুলিশ বোমা সদৃশ বস্তু ৩টি ও কাগজে লেখা চিরকুট উদ্ধার করে ক্যাম্পে নিয়ে নিস্ক্রিয় করার জন্য পানির ভেতর রাখে। খবর পেয়ে দৌলতপুর থানার ওসি এস এম আরিফুর রহমান ঘটনাস্থলে গিয়ে বিষয়টির খোঁজখবর নেন এবং কারা এ ঘটনা ঘটিয়েছেন তা তদন্ত করে আইনগত ব্যবস্থা গ্রহনের সিদ্ধান্তের কথা জানান।

 

নতুন করে শনাক্ত  ৯৩০ জন – মৃতের সংখ্যা ছাড়ালো  ৩০০

ঢাকা অফিস ॥ দেশে গত ২৪ ঘণ্টায় করোনা আক্রান্ত হয়ে মারা গেছেন আরও ১৬ জন। এ নিয়ে করোনায় মৃতের সংখ্যা দাঁড়ালো ৩১৪ জনে। গত ২৪ ঘণ্টায় নতুন করে ৯৩০ জন করোনা রোগী শনাক্ত হয়েছেন। এ নিয়ে এখন পর্যন্ত মোট শনাক্ত হলেন ২০ হাজার ৯৯৫ জন। গত ২৪ ঘণ্টায় মোট সুস্থ হয়েছেন ২৩৫ জন। এ নিয়ে এখন পর্যন্ত মোট সুস্থ হলেন চার হাজার ১১৭ জন।  গতকাল শনিবার বেলা আড়াইটায় কোভিড-১৯ সম্পর্কিত সার্বিক পরিস্থিতি জানাতে স্বাস্থ্য অধিদফতরের নিয়মিত স্বাস্থ্য বুলেটিনে এসব তথ্য জানান স্বাস্থ্য অধিদফতরের অতিরিক্ত মহাপরিচালক (প্রশাসন) অধ্যাপক নাসিমা সুলতানা। তিনি জানান, মৃত্যুবরণকারীদের মধ্যে সবাই পুরুষ। এর মধ্যে ঢাকা বিভাগের ১২ জন, চট্টগ্রাম বিভাগের দু’জন এবং রংপুর বিভাগের দু’জন। ঢাকা বিভাগের মধ্যে ঢাকা শহরের সাত জন, ঢাকা জেলার দু’জন এবং গাজীপুর, মুন্সীগঞ্জ এবং নরসিংদীতে একজন করে রয়েছেন। বয়স বিশ্লেষণে দেখা যায়, ৭১ থেকে ৮০ বছরের মধ্যে একজন, ৬১ থেকে ৭০ বছরের মধ্যে তিন জন,  ৪১ থেকে ৫০ বছরের মধ্যে পাঁচ জন, ৫১ থেকে ৬০ বছরের মধ্যে ছয় জন, ৩১ থেকে ৪০ বছরের মধ্যে একজন রয়েছেন। নাসিমা সুলতানা জানান, ঢাকার ১২টি এবং ঢাকার বাইরে ২১টি ল্যাবে গত ২৪ ঘণ্টায় নমুনা সংগ্রহ ছিল ছয় হাজার ৫০১টি, আর পরীক্ষা করা হয়েছে ছয় হাজার ৭৮২টি। সারাদেশের ৪১টি ল্যাবের মধ্যে ঢাকার ১২টি এবং ঢাকার বাইরের ২১টি ল্যাবের নমুনা পরীক্ষার ফলাফল এটি। ঢাকার ৮টি ল্যাবের ফলাফল এখনও এসে পৌঁছায়নি। স্বাস্থ্য অধিদফতরের অতিরিক্ত মহাপরিচালক জানান, গত ২৪ ঘণ্টায় আইসোলেশনে রাখা হয়েছে ৩৪৯ জনকে। বর্তমানে আইসোলেশনে আছেন তিন হাজার ৪৬ জন। ২৪ ঘণ্টায় আইসোলেশন থেকে ছাড়া পেয়েছেন ৫১ জন। এখন পর্যন্ত মোট ছাড়া পেয়েছেন এক হাজার ৫৩০ জন। তিনি আরও জানান, গত ২৪ ঘণ্টায় প্রাতিষ্ঠানিক ও হোম কোয়ারেন্টিন মিলে কোয়ারেন্টিন করা হয়েছে দুই হাজার ৫১০ জনকে। এখন পর্যন্ত দুই লাখ ৩৬ হাজার ৯১৪ জনকে কোয়ারেন্টিন করা হয়েছে। কোয়ারেন্টিন থেকে গত ২৪ ঘণ্টায় ছাড়া পেয়েছেন এক হাজার ৭০৪ জন, এখন পর্যন্ত মোট ছাড়া পেয়েছেন এক লাখ ৮৮ হাজার ৭৭৩ জন। বর্তমানে মোট কোয়ারেন্টিনে আছেন ৪৮ হাজার ১৪১ জন।

কুষ্টিয়ায় কর্মহীন স্বর্ণ কারিগরদের খাদ্য সহায়তা প্রদানকালে  ডিসি আসলাম হোসেন

আগে জীবনকে বাঁচান তার পরে জীবিকার পানে যান

নিজ সংবাদ ॥ করোনা ভাইরাসের কারণে দেশব্যাপী ব্যবসা প্রতিষ্ঠান বন্ধ থাকায় কর্মহীন হয়েছে পড়েছে নানা পেশার  মানুষেরা বিশেষ করে ব্যবসায়ী প্রতিষ্ঠানের কর্মচারী, শ্রমিকরা।

গতকাল শনিবার কর্মহীন হয়ে পড়া কুষ্টিয়ার ১৭০ জন স্বর্ণ কারিগরদের মাঝে খাদ্য সহায়তা সামগ্রী বিতরন করেছে জেলা প্রশাসন। সকাল ১০টায় কুষ্টিয়া ষ্টেডিয়ামে আনুষ্ঠানিকভাবে জেলা প্রশাসক মো, আসলাম হোসেন এ খাদ্য সামগ্রী বিতরন করেন। জেলার ১৭০ জন স্বর্ণ কারিগর ও পৌর শেখ রাসেল মার্কেটের ২৬ জন দোকান কর্মচারীর কর্মচারীর মাঝে খাদ্য সহায়তা প্রদান করা হয়।

এ সময় উপস্থিত ছিলেন কুষ্টিয়ার অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (সার্বিক) মুহাঃ ওবায়দুর রহমান, এনডিসি মুছাব্বেরুল ইসলাম, জেলা ত্রাণ ও পূর্ণবাসন কর্মকর্তা আব্দুর রহমান। এসময় জেলা প্রশাসক মো, আসলাম হোসেন বলেন-সরকারের সদিচ্ছার প্রতি ফলনে জেলার কর্মহীন মানুষের মাঝে খাদ্য সামগ্রী বিতরণ অব্যাহত থাকায় মানুষ স্বস্তির মাঝে বসবাস করতে পারছে অন্যথায় বিরূপ প্রভাব পড়তো। তিনি বলেন, করোনা ভাইরাস মোকাবিলায় আমাদের সকলকে সচেতন হতে হবে এবং একজন যোগ্য নাগরিকের পরিচয় দিতে হবে। সরকারের সকল বিধি নিষেধের প্রতি আন্তরিক হয়ে তা মান্য করতে হবে। তিনি বলেন, সরকার খাদ্য সামগ্রী দিয়ে মানুষকে ঘরে রাখার চেষ্ঠা চালাচ্ছে অথচ মানুষেরা বিনা প্রয়োজনে ঘর থেকে বের হয়ে নিজে, পরিবার ও সমাজকে বিপদের মুখে ঠেলে দিচ্ছে যা কাম্য নয়। তিনি বলেন, আগে জীবনকে বাঁচান তার পরে জীবিকার পানে যান। আপনার জীবন বিপন্ন হলে শুধু আপনি নয় আপনার পরিবার মারাত্বক ক্ষতির মধ্যে পড়বে। তাই নিজে সচেতন এবং দায়িত্বশীল আচরন করুন ইনশাআল্লাহ করোনা বিরূপ প্রভাব একদিন কেটে যাবে। পরে তিনি স্বর্ণ কারিগর ও দোকান কর্মচারীদের হাতে খাদ্য সামগ্রী তুলে দেন।