ঝিনাইদহে নিম্নআয়ের মানুষের মাঝে জেলা পুলিশের খাদ্য সামগ্রী বিতরণ

ঝিনাইদহ প্রতিনিধি ॥ ঝিনাইদহে করোনার প্রভাবে সরকারি নির্দেশনা অনুযায়ী ঘরে থাকা গ্রামের অসহায় ও দরিদ্র পরিবারের মধ্যে জেলা পুলিশের পক্ষ থেকে তিন’শ প্যাকেট চাল, ডাল তেলসহ নিত্যপ্রয়োজনীয় খাদ্য সামগ্রী বিতরণ করা হয়েছে। সারাদিন করোনা প্রতিরোধে সরকারী দায়িত্ব পালন শেষে বুধবার সন্ধা ৭ থেকে রাত ১০ পর্যন্ত পুলিশ সুপার মোঃ হাসানুজ্জামানের নেতৃত্বে জেলা পুলিশের কর্মকর্তারা ঝিনাইদহ সদর উপজেলার সাধুহাটি ও মধুহাটি ইউনিয়নের বাজার গোপালপুর, মামুসিয়া, বংকিরা, হাজরা, গোবিন্দপুর ও মামুদপুর গ্রামের ঘরে বসে থাকা হতদরিদ্র নারী ও পুরুষের কাছে তিন শতাধিক প্যাকেট চাল, ডাল তেলসহ নিত্যপ্রয়োজনীয় খাদ্য সামগ্রী বিতরণ করা হয়। পুলিশ সুপার মোঃ হাসানুজ্জামান নিজ হাতে এই খাদ্য সামগ্রী  তাদের হাতে পৌছে দেন।  এসময়  অতিরিক্ত পুলিশ সুপার হেড কোয়াটার তারেক আল মেহেদী, ঝিনাইদহ সদর সার্কেলের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার আবুল বাশার, ঝিনাইদহ সদর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মিজানুর রহমান মিজান, বাজার গোপালপুর ও বংকিরা পুলিশ কাম্পের আইসিগণ, পুলিশের বিভিন্ন শাখার কর্মকর্তা এবং ঝিনাইদহ প্রেসক্লাবের সভাপতি এম রায়হান, সাধারণ সম্পাদক মাহমুদ হাসান টিপু, সহ-সম্পাদক কে এম সালেহসহ সাংবাদিকদের একটি দল বিতরণ কার্যক্রমে সঙ্গী ছিলেন।

লকডাউন অমান্যকারীদের ‘গুলি করে মারতে’ বললেন দুতার্তে

ঢাকা অফিস ॥ লকডাউনের নির্দেশনা অমান্যকারীরা কোনো ধরনের সমস্যা সৃষ্টি করলে তাদেরকে আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর গুলির মুখোমুখি হতে হবে বলে সতর্ক করেছেন ফিলিপিন্সের প্রেসিডেন্ট রড্রিগো দুতার্তে। স্বাস্থ্যকর্মীদের লাঞ্ছনা ও নির্যাতনকে ভয়াবহ অপরাধ হিসেবে বিবেচনায় নিয়ে কোনোক্রমেই তা সহ্য করা হবে না বলেও হুঁশিয়ারি দিয়েছেন তিনি। বুধবার রাতে টেলিভিশনে দেশবাসীর উদ্দেশ্যে দেওয়া ভাষণে দুতার্তে এসব বলেছেন বলে জানিয়েছে বার্তা সংস্থা রয়টার্স। ফিলিপিন্সের প্রেসিডেন্ট বলেছেন, সবার সহযোগিতা এবং কোয়ারেন্টিনের নির্দেশনা মেনে চলাই এই মুহুর্তে সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ। দেশটিতে এখন পর্যন্ত দুই হাজার ৩১১ জনের দেহে করোনাভাইরাস শনাক্ত হয়েছে; মৃতের সংখ্যা পৌঁছেছে ৯৬-তে। আক্রান্তদের তিন জন বাদে বাকি সবাই গত তিন সপ্তাহে শনাক্ত হয়েছে। দক্ষিণপূর্ব এশিয়ার এ দেশটিতে এখন প্রতিদিনই শতাধিক আক্রান্তের সন্ধান মিলছে। “পরিস্থিতি খারাপ হচ্ছে। যে কারণে আরও একবার সংকটের গুরুত্ব নিয়ে বলছি যেন আপনারা শোনেন। পুলিশ ও সেনাবাহিনীর প্রতি আমার নির্দেশ হচ্ছে, যদি কোনো সমস্যা দেখা দেয়, যদি এমন পরিস্থিতি আসে যে তারা (লকডাউন অমান্যকারীরা) পাল্টা আঘাত হানছে আর আপনাদের জীবন বিপদাপন্ন, তাহলে গুলি করে মেরে ফেলুন তাদের। “ বোঝা গেছে ব্যাপারটা? মেরে ফেলুন। ঝামেলা সৃষ্টির বদলে আমি আপনাদের কবর দেবো,” টেলিভিশনে দেওয়া ভাষণে বলেছেন দুতার্তে। সরকারের দেওয়া অপ্রতুল খাদ্য সাহায্য নিয়ে বুধবার ম্যানিলার দরিদ্র অঞ্চলের বাসিন্দাদের বিক্ষোভকে কেন্দ্র করে বিশৃঙ্খলা ও বেশ ক’জনকে গ্রেপ্তারের খবর দিয়েছে ফিলিপিন্সের গণমাধ্যমগুলো, এর পরপরই দুতার্তের এ হুঁশিয়ারি এলো। ফিলিপিন্সে সামাজিক কুসংস্কার ও বর্তমান পরিস্থিতির কারণে স্বাস্থ্যকর্মীদের ওপর যে ধরনের নির্যাতন ও বৈষম্য চলছে তা নিয়ে চিকিৎসক মহলে বেশ ক্ষোভ আছে বলেও গণমাধ্যমগুলো জানিয়েছে। ভাষণে স্বাস্থ্য কর্মীদের নির্যাতনের বিরুদ্ধেও প্রেসিডেন্ট সাবধান করেছেন। বলেছেন, এগুলো অবশ্যই বন্ধ করতে হবে। সমালোচকরা দুতার্তের এমন ‘গরম গরম’ কথায় ক্ষুব্ধ প্রতিক্রিয়া ব্যক্ত করেছেন। ফিলিপিন্সের প্রেসিডেন্ট তার মাদকবিরোধী যুদ্ধের মতো এ ক্ষেত্রেও সহিংসতা ও নজরদারিকে ডেকে আনছেন, অভিযোগ তাদের। দুতার্তের ওই মাদকবিরোধী যুদ্ধে পুলিশ ও রহস্যময় বন্দুকধারীদের হাতে কয়েক হাজার মানুষ নিহত হয়েছে বলে অভিযোগ রয়েছে। পুলিশ অবশ্য এসব অভিযোগ উড়িয়ে দিয়েছে। মাদকবিরোধী অভিযানে তাদের পদক্ষেপগুলো আইনসম্মত ছিল বলে দাবি তাদের। টেলিভিশনে দেওয়া ভাষণে দুতার্তে লকডাউন অমান্যকারীদের ‘গুলি করে মারতে’ বললেও তার কার্যালয় বলছে, প্রেসিডেন্ট পরিস্থিতির গুরুত্ব বোঝাতেই ওই শব্দগুলো ব্যবহার করেছেন। বৃহস্পতিবার দেশটির পুলিশ প্রধান বলেছেন, নির্দেশনা মানাতে দুতার্তের কঠোর অবস্থান বুঝতে পেরেছেন তারা। তবে কাউকেই গুলি করা হবে না বলে আশ্বস্ত করেছেন তিনি।

করোনার প্রভাবে ক্ষতিগ্রস্ত নিম্নআয়ের মানুষের পাশে ভেড়ামারা সমিতি

ভেড়ামারা অফিস ॥ যারা লোক লজ্জায় কারো কাছে হাত পাততে পারে না, তাদের ঘরে গিয়ে গোপনে খাদ্যসামগ্রী পৌঁছে দিয়েছে  ভেড়ামারা সমিতি ঢাকা। করোনার প্রভাবে ক্ষতিগ্রস্ত নিম্নআয়ের মানুষের পাশে দাঁড়াতে আজ কুষ্টিয়ার ভেড়ামারায় এক হাজার পরিবারের মাঝে খাদ্য সামগ্রী বিতরণ করেছে ঢাকাস্থ সংগঠনটি। প্রত্যেক পরিবারের জন্য চাল, ডাল, তেল, লবন, আলু, চিড়া, সাবান ও মাস্কের প্যাকেট ভেড়ামারা পৌরসভাসহ ছয়টি ইউনিয়নের খেটে খাওয়া মানুষের মাঝে বিতরণ করা হয়। এছাড়াও গরীব-অসহায়ের মাঝে বিতরণের লক্ষ্যে উপজেলা প্রশাসন ও ভেড়ামারা থানাকে খাদ্য সামগ্রী দিয়ে সহযোগিতার হাত বাড়িয়ে দিয়েছে সংগঠনটি। ভেড়ামারা উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) সোহেল মারুফ ও ভেড়ামারা থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মোঃ শাহজালাল ভেড়ামারা সমিতির নেতৃবৃন্দের কাছ থেকে খাদ্য সামগ্রী গ্রহন করেন। খাদ্য সামগ্রী বিতরণ কার্যক্রম চলাকালে উপস্থিত ছিলেন ভেড়ামারা সমিতি ঢাকা’র যুগ্ম মহাসচিব তারিকুজ্জামান তারিক, সাংগঠনিক সম্পাদক ডাঃ সাইফুল ইসলাম, কোষাধ্যক্ষ মোস্তাফিজুর রহমান রিপন, ধর্মীয় সম্পাদক ডাঃ শহীদুল ইসলামসহ স্থানীয় স্বেচ্ছাসেবী সংগঠনের নেতৃবৃন্দ।  ভেড়ামারা সমিতির নেতৃবৃন্দ জানান, করোনা পরিস্থিতি মোকাবেলা ও জনগনকে সচেতন করতে ভেড়ামারা সমিতি ঢাকার পক্ষ থেকে ফ্রি মাস্ক ও লিফলেট বিতরণের পর খাদ্য সামগ্রী বিতরণ কর্মসূচী গ্রহন করা হয়েছে। ভেড়ামারা উপজেলার যারা সমাজে অন্যের কাছে হাত পাততে পারে না, সেই মানুষগুলোর বাড়ীতে গিয়ে খাদ্য সামগ্রী পৌঁছে দেয়া হয়েছে। প্রকৃত অসহায় মানুষগুলোর আতœমর্যাদা অক্ষুন্ন রাখতে অনেকটা গোপনে বিতরণ কার্যক্রম পরিচালিত হয়েছে এবং ত্রাণ গ্রহীতাদের ছবি তুলে যেন প্রচার না করা হয়, সেজন্য সবাইকে নির্দেশনা দেয়া হয়েছে। নিম্নআয়ের মানুষের পাশে দাঁড়াতে সবার প্রতি আহবান জানান ভেড়ামারা সমিতির নেতৃবৃন্দ।

যুক্তরাষ্ট্রে সব কারাগার লকডাউন

ঢাকা অফিস ॥ করোনাভাইরাসের বিস্তার প্রতিরোধে যুক্তরাষ্ট্রে সব কারাগার ১৪ দিনের জন্য লকডাউন করা হয়েছে। দেশটিতে কোয়ারেন্টিন ও আইসোলেশন বাড়তে থাকায় বুধবার এ সিদ্ধান্ত নেয় ফেডারেল বুরো অব প্রিজন। এ খবর জানিয়েছে তুর্কি রাষ্ট্রীয় সংবাদ মাধ্যম আনাদলু। সংস্থাটির পক্ষ থেকে বলা হয়েছে, বন্দিদের কোয়ার্টারে বা সেলে থাকতে হবে অন্তত দুই সপ্তাহের জন্য। তবে লকডাউন আরও বাড়তে পারে। কারাগারে লকডাউনের সময় প্রতিনিধি, লন্ড্রি, পানি, কম্পিউটার এবং টেলিফোন এ সব ক্ষেত্রে বিশেষ সুবিধা পাওয়া যাবে। মার্কিন ম্যাগাজিন পলিটিকো এক প্রতিবেদনে জানায়, যুক্তরাষ্ট্রের কারা কর্তৃপক্ষ করোনাভাইরাস বিস্তার রোধে ফেডারেল কারাগারে ১৪ দিনের জন্য বন্দিদের (তাদের জন্য নির্দিষ্ট সেল) থাকতে আদেশ দিয়েছে। বুরো অব প্রিজনের পক্ষ থেকে মঙ্গলবার এ সংক্রান্ত এক বিবৃতি দেয়া হয়। বিবৃতিতে বলা হয়েছে, সাধারণ কর্মসূচি ও স্যানিটেশন বজায় রাখার জন্য কিছু ব্যতিক্রম অনুমোদন করা হবে। ফেডারেল প্রিজন এজেন্সির পক্ষ থেকে আরও বলা হয়েছে, তারা যুক্তরাষ্ট্রের মার্সাল সার্ভিসের সঙ্গে যৌথ কাজ করে যাবে; যাতে লকডাউনের সময় নতুন বন্দি সীমিত করা যায়। মঙ্গলবার প্রকাশিত ফেডারেল কারাগার ব্যবস্থাপনার এক সমীক্ষায় জানা গেছে, ফেডারেল কারাগারে ২৯ জন বন্দি ও ৩০ জন কর্মী করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছেন। এর মধ্যে ভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে একজন বন্দি মারা গেছেন। আন্তর্জাতিক জরিপ সংস্থা জনস হপকিন্স ইউনির্ভাসিটির তথ্যানুযায়ী বুধবার পর্যন্ত যুক্তরাষ্ট্রে করোনাভাইরাসে আক্রান্তের সংখ্যা ২ লাখ ৬ হাজার। আর এ ভাইরাটিতে দেশটিতে সাড়ে ৪ হাজারের বেশি মানুষ মারা গেছেন। চীনের উহান থেকে ছড়িয়ে পড়া করোনাভাইরাসে এখন পর্যন্ত সারা বিশ্বে ৪৮ হাজার ৩১৯ জন মারা গেছেন। আর এ ভাইরাসটিতে আক্রান্ত হয়েছেন ৯ লাখ ৭১ হাজার ৭৫৪ জন।

করোনাভাইরাসে মৃত্যু ঠেকাচ্ছে যক্ষ্মার টিকা

ঢাকা অফিস ॥ যেসব দেশে যক্ষ্মার টিকা দেওয়া বাধ্যতামূলক সেসব দেশে অন্য দেশগুলোর তুলনায় নভেল করোনাভাইরাসে মৃত্যু কম হচ্ছে বলে নতুন একটি সমীক্ষা প্রতিবেদনে বলা হয়েছে। ‘কোরিলেশন বিটুইন ইউনিভার্সাল বিসিজি ভ্যাকসিনেশন পলিসি অ্যান্ড রিডুউসড মরবিডিটি অ্যান্ড মরটালিটি ফর কোভিড-১৯’ শিরোনামের মহামারী নিয়ে এই প্রারম্ভিক সমীক্ষা করেছেন নিউ ইয়র্ক ইনস্টিটিউট অব টেকনোলোজির (এনওয়াইআইটি) একদল গবেষক। তারা দেখতে পেয়েছেন, যেসব দেশে নাগরিকদের বিসিজি টিকা দেওয়া হয়ে থাকে সেগুলোতে কোভিড-১৯ আক্রান্তের সংখ্যা ও এতে মৃত্যু কম হচ্ছে। কোভিড-১৯ এ যে দেশে মৃত্যু হয়েছে সবচেয়ে বেশি মানুষের সেই ইতালিতে কখনও সার্বজনীন বিসিজি টিকা দেওয়া হয়নি। অন্যদিকে জাপানে প্রথম দিকে এই ভাইরাস সংক্রমণ শুরু হলেও তারা মানুষকে ঘরবন্দি করার এই রকম কঠোর পদক্ষেপ না নিলেও তাদের ওখানে মৃত্যু হার কম।

জাপান ১৯৪৭ সাল থেকে বিসিজি টিকা দিয়ে আসছে। দেশটিতে করোনাভাইরাস আক্রান্ত ও মৃত্যু হার কম হওয়ার বিষয়টি খেয়াল করে এই সমীক্ষা শুরু করেন নিউ ইয়র্ক ইনস্টিটিউট অব টেকনোলোজির সহকারী অধ্যাপক ও সমীক্ষার নেতৃত্বদাতা গনজালো ওটাজু। তিনি বলেন, এই মহামারী শুরু হয়েছে যেখানে সেই চীনে বিসিজি টিকা দেওয়া হলেও তা ১৯৭৬ সালের আগে ততটা ভালো ছিল না। জাপান ও দক্ষিণ কোরিয়ার মতো যেসব দেশ এই রোগ নিয়ন্ত্রণ করতে পেরেছে, তাদের সার্বজনীন বিসিজি টিকী নীতি রয়েছে। স্বল্প আয়ের দেশগুলো করোনাভাইরাস আক্রান্তের যে তথ্য দিচ্ছে তা এখানে যথেষ্ট বিশ্বাসযোগ্য হিসেবে বিবেচনা করা হচ্ছে না। করোনাভাইরাসে খুব বেশি আক্রান্ত ইরানেও বিসিজি টিকা দেওয়া হয় ১৯৮৪ সাল থেকে, অর্থাৎ সেখানে ৩৬ বছরের বেশি বয়সীরা সুরক্ষিত নয়। বেশি আয়ের দেশগুলোর মধ্যে কোভিড-১৯ ব্যাপকভাবে ছড়ানো যুক্তরাষ্ট্র ও ইতালিতে বিসিজি টিকা শুধু তাদেরই দেওয়া হয়, যাদের ঝুঁকিপূর্ণ বিবেচনা করা হয়। অন্যদিকে জার্মানি, স্পেন, ফ্রান্স ও যুক্তরাজ্যে সার্বজনীন টিকা চালু থাকলেও কয়েক বছর থেকে কয়েক দশক আগে এসব দেশে বন্ধ করা হয়। বিসিজি টিকাকে দেখা হয় যে, এটি শরীরে ভাইরাল সংক্রমণ বা সেপসিস ১১ এর বিরুদ্ধে বৃহত্তর সুরক্ষা তৈরি করে। সমীক্ষায় দেখা গেছে, বিসিজি টিকা দেওয়া দেশে কোভিড-১৯ সংক্রমণ কম, এটা এই ইঙ্গিত দেয় যে বিসিজি সুনির্দিষ্টভাবে এই ভাইরাসের বিরুদ্ধে সুরক্ষা তৈরি করতে পারে। কোনো জনগোষ্ঠীর মধ্যে সার্বজনীন বিসিজি টিকা দেওয়া করোনাভাইরাস আক্রান্তের সংখ্যা কমাতে পারে এবং অন্যান্য পদক্ষেপের মাধ্যমে সংক্রমণের হার কমানো বা এর বিস্তার বন্ধ করা যায়। সমীক্ষায় বিসিজি টিকা কোভিড-১৯ এর বিস্তার কম-এ দুটি বিষয় পরস্পর সম্পর্কযুক্ত বলা হলে আদতেও এই টিকা ভাইরাসটি প্রতিরোধে কোনো মাত্রায় ভূমিকা রাখে কি না, তা বের করতে অন্তত ছয়টি দেশে পরীক্ষা চলছে। আর নভেল করোনাভাইরাস নতুন ধরনের একটি ভাইরাস হওয়ায় তা নিয়ে সব প্রশ্নের উত্তর খুঁজতে গবেষকরা এখনও ব্যস্ত গবেষণায়।

দৌলতপুরে জুয়া খেলা নিয়ে হাতাহাতি

দৌলতপুর প্রতিনিধি ॥ কুষ্টিয়ার দৌলতপুরে জুয়া খেলা নিয়ে হাতাহাতির ঘটনা ঘটেছে। গতকাল বৃহস্পতিবার বিকেল সাড়ে ৫টার দিকে উপজেলার প্রাগপুর ইউনিয়নের ইসলামনগর বাঁধেরবাজার এলাকায় এ ঘটনা ঘটে। এনিয়ে দুই পক্ষের লোকজন সংঘর্ষে লিপ্ত হওয়ার জন্য সমবেত হলে পুলিশ গিয়ে তা ছত্রভঙ্গ করেছে। প্রত্যক্ষদর্শী ও স্থানীয়রা জানায়, উপজেলার ইসলামনগর এলাকার শামসুল হকের বাড়ির পেছনে বাগানের ভেতর একই এলাকার ফজর দেওয়ানের ছেলে সবুজ, হারানের ছেলে সেন্টু, বকসি সর্দারের ছেলে ইমদাদুল হক, আসাদের ছেলে রিন্টু ও ইমদাদুলের ছেলে জিল্লু জুয়া খেলছিল। সবুজ জুয়া খেলে ১০হাজার টাকা হেরে যায় সেন্টুর কাছে। পরে সেন্টু আর জুয়া  খেলতে না চাইলে সবুজ তাকে জোর করে খেলার জন্য বাধ্য করার চেষ্টা করে। একপর্যায়ে সবুজ সেন্টুকে কিল ঘুষি মেরে তার কাছ থেকে জুয়া খেলে জেতার টাকা ছিনিয়ে নেয়ার চেষ্টা করে। সেন্টু ঘটনাস্থল থেকে পালিয়ে এসে তার বাড়ির লোকজনকে জানালে সংঘর্ষে লিপ্ত হওয়ার জন্য সবুজ ও সেন্টু পরিবারের লোকজন বাঁধের বাজারে জড়ো হয়। খবর পেয়ে দৌলতপুর থানা পুলিশ তৎক্ষনাত ঘটনাস্থলে পৌঁছে উভয়পক্ষকে ধাওয়া দিলে পরিস্থিতি স্বাভাবিক হয়।

করোনাভাইরাস

‘কার্যকর’ অ্যান্টিবডি পেয়েছেন চীনা বিজ্ঞানীরা

ঢাকা অফিস ॥ মানবদেহ কোষে নভেল করোনাভাইরাসের প্রবেশের ক্ষমতা রোধ করার মতো ‘অত্যন্ত কার্যকর’ কয়েকটি অ্যান্টিবডি পৃথক করার কথা জানিয়েছেন চীনের একদল বিজ্ঞানী। এগুলো শেষ পর্যন্ত কোভিড-১৯ এর চিকিৎসা ও প্রতিরোধে সহায়ক ভূমিকা পালন করতে পারে বলে মনে করছেন তারা, জানিয়েছে বার্তা সংস্থা রয়টার্স। চীনে উৎপত্তি হয়ে বিশ্বজুড়ে মহামারী আকারে ছড়িয়ে পড়া এ রোগে আক্রান্তের সংখ্যা এখন সাড়ে নয় লাখের কাছাকাছি চলে গেছে, মৃতের সংখ্যা ৪৭ হাজার ছাড়িয়েছে; কিন্তু এখনও এই রোগের প্রমাণিত কার্যকর কোনো চিকিৎসা নেই। বেইজিংয়ের সিংহুয়া বিশ্ববিদ্যালয়ের ঝাং লিনছি জানান, তার টিম যে ধরনের অ্যান্টিবডিগুলো পেয়েছে সেগুলো দিয়ে  তৈরি করা একটি ওষুধ বর্তমানে প্রয়োগরত পদ্ধতির চেয়ে আরও কার্যকরভাবে ব্যবহার করা যেতে পারে, প্রাজমার মতো ‘বর্ডারলাইন’ চিকিৎসায় এটি ব্যবহার করা যেতে পারে। প্রাজমায় অ্যান্টিবডি থাকে কিন্তু এগুলো ব্লাড টাইপ দিয়ে নিয়ন্ত্রিত হয়। জানুয়ারির প্রথমদিকে কোভিড-১৯ থেকে সুস্থ হওয়া চীনা রোগীদের দেহ থেকে রক্ত নিয়ে তা থেকে সংগ্রহ করা অ্যান্টিবডি বিশ্লেষণ শুরু করেছিলেন ঝাংয়ের টিম ও শেনঝেনের তৃতীয় গণহাসপাতালের আরেকটি টিম। তারা ২০৬টি মনোক্লোনাল অ্যান্টিবডি পৃথক করেন। এ অ্যান্টিবডিগুলো নভেল করোনাভাইরাসের প্রোটিনের সঙ্গে বন্ধন গড়ে তোলার ‘জোরালো’ সক্ষমতা দেখিয়েছে বলে ঝাং জানান। এরপর তারা আরও কয়েকটি পরীক্ষা করে সত্যিই মানবদেহ কোষে ভাইরাসটির প্রবেশ রোধ করা যায় কি না, তা যাচাই করেন বলে এক সাক্ষাৎকারে রয়টার্সকে বলেন তিনি। প্রথম যে ২০টির মতো অ্যান্টিবডি পরীক্ষা করা হয় সেগুলোর মধ্যে চারটি ভাইরাসের প্রবেশ আটকাতে সক্ষম হয়, আর এগুলোর মধ্যে দুটি ‘অত্যন্ত ভালো’ সক্ষমতা দেখায় বলে ঝাং জানান। ঝাংয়ের টিএম এখন সবচেয়ে কার্যকর অ্যান্টিবডিগুলো শনাক্ত করার কাজে মনোনিবেশ করেছে এবং এগুলোর সংমিশ্রণ তৈরি করে সম্ভবত নভেল করোনাভাইরাসের পরিবর্তনের ঝুঁকি হ্রাস করার চেষ্টা করবে। অগ্রগতি সন্তোষজনক হলে প্রথমে প্রাণীর ওপর তারপর মানুষের ওপর ওষুধটির কার্যকারিতা পরীক্ষা করা হবে। এরপর আগ্রহী উৎপাদকরা ওষুধটির উৎপাদন শুরু করতে পারবেন।

 

দৌলতপুরে সামাজিক দূরত্ব বজায় রেখে চা বিক্রেতাদের মাঝে ত্রাণ সামগ্রী তুলে দিলেন উপজেলা চেয়ারম্যান এজাজ আহমেদ মামুন

দৌলতপুর প্রতিনিধি ॥ কুষ্টিয়ার দৌলতপুরে সামাজিক দূরত্ব বজায় রেখে চা বিক্রেতাদের মাঝে ত্রাণ সামগ্রী তুলে দিয়েছেন উপজেলা চেয়ারম্যান এ্যাড. এজাজ আহমেদ মামুন। গতকাল বৃহস্পতিবার দুপুরে উপজেলা পরিষদ চত্বরে ও সেন্টারমোড়ে ‘করোনা ভাইরাস’ থেকে নিরাপদ ও সুস্থ থাকতে এক সপ্তাহের বেশী সময় ধরে বন্ধ থাকা ৪৮ জন চা বিক্রেতার হাতে এসব ত্রাণ সামগ্রী তুলে দেওয়া হয়। দৌলতপুর উপজেলা চেয়ারম্যান এ্যাড. এজাজ আহমেদ মামুন ও দৌলতপুর প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা আব্দুল হান্নান দিনমজুর চা বিক্রেতাদের হাতে হাতে এসব ত্রাণ সামগ্রী তুলে দেন। এসময় উপস্থিত ছিলেন, মুক্তিযোদ্ধা মো. আব্দুস সোবহান।

এক লাখ পরিবারকে ১৫০০ টাকা করে দেবে ব্র্যাক

ঢাকা অফিস ॥ করোনাভাইরাসের প্রাদুর্ভাবের মধ্যে খাদ্য সংকটে থাকা এক লাখ ছিন্নমূল ও দিনমজুর পরিবারকে দেড় হাজার টাকা করে দেওয়ার ঘোষণা দিয়েছে বেসরকারি উন্নয়ন সংস্থা ব্র্যাক। বৃহস্পতিবার মহাখালীতে ব্র্যাক কার্যালয়ে এক সংবাদ সম্মেলনে দুই সপ্তাহের জন্য এই নগদ সহায়তার ঘোষণা দেন সংস্থার নির্বাহী পরিচালক আসিফ সালেহ। তিনি বলেন, “ছিন্নমূল, অতিদরিদ্র ও দিনমজুর- এই রকম এক লাখ পরিবারকে আমরা চিহ্নিত করেছি। আগামী দুই সপ্তাহ জরুরি ভিত্তিতে নগদ সহায়তা তাদেরকে দেব, যাতে দুই সপ্তাহ, তাদের খাদ্য নিয়ে যে ঝুঁকি তৈরি হয়েছে, সেটা থেকে মুক্ত থাকতে পারে।” আসিফ সালেহ বলেন, “আমরা হিসাব করে দেখেছি, যেহেতু বাজার এখনও খোলা আছে, নগদ দেওয়াটা সবচেয়ে বেশি সহজ এবং এটা তারা তাদের মত করে খরচ করতে পারবেন। “এক্ষেত্রে সাড়ে সাতশ টাকা একটি চার সদস্যের পরিবারের জরুরি কিছু খাবারের জন্য খরচ হয়। সে হিসাবে আমরা ১৫০০ টাকা করে এক লাখ পরিবারকে দিচ্ছি।” শহরের ছিন্নমূল মানুষ ও বস্তিবাসীরা এই তালিকার মধ্যে রয়েছে জানিয়ে তিনি বলেন, “সরকারি যে উদ্যোগগুলো রয়েছে, তালিকা রয়েছে, সেই তালিকার সঙ্গে আমাদের তালিকার ডুপি¬কেশন যেন না হয়, সেটা নিশ্চিত করা প্রয়োজন। জেলা প্রশাসক ও মেয়র মহোদয়রা আমাদের সহায়তা করছেন।” সহায়তার ক্ষেত্রে অন্য বেসরকারি ও স্বেচ্ছাসেবী সংগঠনের সমন্বয়ের আহ্বান জানিয়ে আসিফ সালেহ বলেন, “আমরা আহ্বান জানাচ্ছি, আরও সামাজিক সংগঠন, প্রাইভেট সেক্টর অর্গানাইজেশন যারা আছে, স্বেচ্ছাসেবক সংগঠনগুলো আমাদের এই উদ্যোগের সঙ্গে জড়িত হন। আমরা এক লাখ পরিবারকে ১৫ কোটি টাকা সহায়তা দিচ্ছি, প্রয়োজনটা কিন্তু আরও বেশি। “এজন্য সরকারি উদ্যোগ এবং আমাদের উদ্যোগের পাশাপাশি বিভিন্ন সংগঠন যারা এ ধরনের কাজ করছেন, তারা যদি একটু সমন্বিতভাবে কাজ করি, তাহলে আমরা কাউকে ফেলে যাব না। সবার জন্য সহায়তা পৌঁছাতে পারব।” বেসরকারি সংগঠনগুলোর মধ্যে সমন্বয়ের কাজ ব্র্যাক দুই-একদিনের মধ্যে শেষ করতে চায় মন্তব্য করে তিনি বলেন, “কারণ, এখানে দেখা যাচ্ছে কোনো কোনো বস্তিতে অনেক বেশি যাচ্ছে, কিছু জায়গাতে একদমই যাচ্ছে না। ছিন্নমূল মানুষ আছে, যারা একদমই পাচ্ছেন না, সেখানেও একটা সমন্বয়ের দরকার আছে।”

দৌলতপুরে ৪’শ দরিদ্র ও অস্বচ্ছল ব্যক্তির মাঝে চাল ব্যবসায়ীদের চাল বিতরণ করেছেন এমপি বাদশা

দৌলতপুর প্রতিনিধি ॥ কুষ্টিয়ার দৌলতপুরে ৪’শ দরিদ্র ও অস্বচ্ছল ব্যক্তির মাঝে চাল ব্যবসায়ীদের চাল বিতরণ করেছেন কুষ্টিয়া-১ দৌলতপুর আসনের এমপি এ্যাড. সরওয়ার জাহান বাদশা। গতকাল বৃহস্পতিবার বেলা ১১টায় দৌলতপুর উপজেলার তারাগুনিয়া ডাকবাংলা চত্বরে উপস্থিত দরিদ্র, দিনমজুর ও অসহায় ব্যক্তিদের মাঝে এ চাল বিতরণ করা হয়। দৌলতপুর চাল ব্যবসায়ী সমিতির সভাপতি বিরাজ হোসেনের সভাপতিত্বে চাল বিতরণ অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি ছিলেন, কুষ্টিয়া-১ দৌলতপুর আসনের সংসদ সদস্য এ্যাড. আ.কা.ম সরওয়ার জাহান বাদশা। বিশেষ অতিথি উপস্থিত ছিলেন দৌলতপুর সহকারী কমিশনার (ভুমি) মো. আজগর আলী। উপস্থিত ছিলেন দৌলতপুর আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক সরদার মো. তৌহিদুল ইসলাম, তথ্য ও গবেষনা বিষয়ক সম্পাদক টিপু নেওয়াজ, দৌলতপুর ছাত্রলীগের সাবেক সভাপতি সরদার মো. আতিয়ার রহমান, দৌলতপুর থানার উপ-পরিদর্শক আজম ও দৌলতপুর চাল ব্যবসায়ী সমিতির সাধারণ সম্পাদক মো. জাকির হোসেনসহ শতাধিক স্থানীয় আওয়ামী লীগ দলীয় নেতা-কর্মী ও আমন্ত্রিত গণমাধ্যম কর্মী। তারাগুনিয়াসহ বিভিন্ন এলাকার ৪০০ জন দরিদ্র ব্যক্তির মাঝে ৫ কেজি চাল, আধ-কেজি তেল, আধা-কেজি ডাল ও একটি সাবান বিতরণ করা হয়। দৌলতপুর চাল ব্যবসায়ী সমিতি দরিদ্র ব্যক্তিদের মাঝে চাল, ডাল, তেল ও সাবান বিতরণ অনুষ্ঠানের আয়োজন করে।

টাকা ছিটিয়ে দিয়ে সমালোচনায় ডিএসসিসি কর্মকর্তা

ঢাকা অফিস ॥ করোনাভাইরাস সঙ্কটে সাহায্য নিতে আসা ছিন্নমূল মানুষের উদ্দেশে টাকা ছুড়ে দিয়ে সমালোচনায় পড়েছেন ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশনের প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা। ভাইরাসের প্রকোপ ঠেকাতে গোটা দেশের ঘরবন্দি অবস্থার মধ্যে গত মঙ্গলবার সায়েন্সল্যাব এলাকায় সিটি করপোরেশনের উদ্যোগে দরিদ্র মানুষের মধ্যে নগদ অর্থ সহায়তা দিতে যান সিইও ইমদাদুল হক। এ সময় লোকজন বেশি জড়ো হয়ে তার উপর হুমড়ি খেয়ে পড়ে। ভিড় এড়াতে গাড়িতে ওঠে পড়েন ডিএসসিসির সিইও। এই ঘটনার বিভিন্ন ছবিতে দেখা যায়, সাহায্য নিতে আসা লোকজন সিইওর গাড়ি ঘিরে রেখেছে। এ সময় তার হাতে থাকা টাকা ছুড়ে দেন বাতাসে। ছড়িয়ে পড়া টাকা নিতে লোকজনের মধ্যে হুড়োহুড়ি পড়ে যায়। নভেল করোনাভাইরাস প্রাদুর্ভাবের মধ্যে রাজধানীসহ সারাদেশে ছুটি ঘোষণা করা হয়েছে। এ কারণে কর্মহীন হয়ে পড়েন অনেক মানুষ। কর্মহীন এসব মানুষকে সহায়তার ঘোষণা দেয় দক্ষিণ সিটি করপোরেশন। এর অংশ হিসেবেই শাহ ইমদাদুল হক সেদিন এলিফ্যান্ট রোড এলাকায় গিয়েছিলেন। বিষয়টি নিয়ে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে সমালোচনামুখর হয়েছেন অনেকে। ফারদিন নোটস নামে একজন ফেইসবুকে লেখেন, “ঢাকা দক্ষিণ সিটি কর্পোরেশনের প্রধান নির্বাহী অফিসার শাহ মোহাম্মদ ইমদাদুল হক টাকা ছিটিয়ে দিচ্ছেন রাস্তায়। দরিদ্র খেটে-খাওয়া মানুষ সেটা প্রাণপণে কুড়িয়ে নিচ্ছেন। ব্রিটিশ কলোনিয়াল মগজধারী আমাদের এইরূপ সামন্তবাদী ব্যাপার স্যাপার খুবই ভালো লাগছে । আপনার ভালো না লাগলে আপনি মানবতাবিরোধী অমানুষ!” বিষয়টি জানতে শাহ ইমদাদুল হকের মোবাইলে কল করলে তিনি ধরেননি। ডিএসসিসি মেয়র মোহাম্মদ সাঈদ খোকন বলেন, বিষয়টি তার জানা ছিল না। সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে আসার পর জেনেছেন। তবে মেয়র বলেন, প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তার উদ্দেশ্য খারাপ ছিল না। “তিনি ভালো কাজের জন্যই সেখানে গিয়েছিলেন। কিন্তু এত মানুষ চলে এসেছে তাদের আর ব্যবস্থাপনার আওতায় রাখা যায়নি। এ কারণে এটা হয়ে থাকতে পারে।”

আলমডাঙ্গা উপজেলা পরিষদের পক্ষ থেকে ডাক্তারদের পিপিই, হ্যান্ডস গ্লোবস ও মাক্স বিতরণ

আলমডাঙ্গা অফিস ॥ আলমডাঙ্গা উপজেলা উপজেলা পরিষদের পক্ষ থেকে  আলমডাঙ্গা স্বাস্থ্য কেন্দ্র হারদীর ডাক্তারদের জন্য ৪০  সেট পিপিই, হ্যান্ড গ্লোবস ও মাক্স প্রদান করা হয়েছে। এবং স্বাস্থ্য সুরক্ষার জন্য হাসপাতালের গেটের পাশে হাত ধোবার হ্যান্ডওয়াস  বেসিন বানিয়ে দেওয়া হয়েছে। গতকাল সকাল সাড়ে ১০টায় উপজেলা চেয়ারম্যান আলহাজ্ব আইয়ুব হোসেন, উপজেলা নির্বাহী অফিসার মোঃ লিটন আলী ও ভাইস চেয়ারম্যান এ্যাডঃ খন্দকার সালমুন আহম্মেদ ডন উপস্থিত থেকে উল্লেখিত মালামাল উপজেলা স্বাস্থ্য ও প,প,অফিসার ডাঃ হাদী জিয়াউদ্দিন আহম্মদের হাতে তুলে দেন। এ সময় প্রধান অতিথি উপজেলা চেয়ারম্যান আইয়ুব  হোসেন বলেন আমরা এখন একটা কঠিন সময় পার করছি, সারা বিশ্বের প্রায় ২০৪টি দেশ আজ করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছে। এ পর্যন্ত বিশ্বের বিভিন্ন দেশ মিলে মোট প্রায় ৪০ হাজার লোকের প্রানহানী ঘটেছে। মৃত্যুর মিছিল থামানো যাচ্ছে না, গতকাল আমেরিকার মত দেশে ২৪ ঘন্টায় ১ হাজার ৪৯ জন করোনায় মৃত্যুবরন করেছে। যা এযাবৎকালের সবচাইতে বেশি। বর্তমান  প্রেক্ষাপটে আমাদের চিকিৎসক, নার্স, উপ-সহকারি মেডিকেল অফিসার তাদের জীবনের মায়া ত্যাগ করে আমাদের মুমুর্ষ  রোগীদের সেবা করছে, চিকিৎসা দিচ্ছে তাই আসুন মানবতার জন্য আমরা সকলের পাশে দাঁড়াই। সাধারন খেটে খাওয়া মানুষ আজ  বেকার হয়ে ঘরে বসে আছে, কাজের মেয়ে, ছেলে, হোটেল বয়, বাদাম বিক্রেতা, শ্রমিক সকলের পাশে দাঁড়াতে বিত্তবান প্রতি অনুরোধ জানান। উপজেলা নির্বাহী অফিসার বলেন- আপনারা প্রত্যেক ইউনিয়ন থেকে তালিকা প্রস্তত করে দেন, আমরা সরকারের পক্ষ থেকে তাদের সাহায্য দেব। তিনি আরো বলেন আমরা প্রত্যেক ইউনিয়নের চেয়ারম্যানদের মাধ্যমে জনপ্রতি গরীব মানুষদের ১০ কেজি করে চাল দিচ্ছি, পৌর এলাকায়ও আমরা তালিকা প্রস্তুত করে তাদের বাড়ী বাড়ী চাল পৌছে দেব। মাননীয় প্রধানমন্ত্রী আপনাদের জন্য খাবারের ব্যবস্থা করেছেন, যতদিন এই দুর্যোগ থাকবে আমরা আপনাদের পাশে আছি, আর অকারনে কেউ বাইরে বের হবেন না, আগামী ১১ তারিখ পর্যন্ত আপনারা ঘরে থাকুন, না হোলে সেনা বাহিনীর সদস্যদের কাছে অপমানীত হতে হবে । এরপর সাধারন রোগীদের নিরাপত্তার জন্য হ্যান্ডওয়াশের জায়গা নির্মাণ করা হয়েছে তা উদ্বোধন করেন। এ সময় উপস্থিত ছিলেন হাসপাতালের আরএমও ডাঃ মুর্তুজা আরেফিন, ডাঃ রাগীব সাহরিয়ারসহ সকল চিকিৎসকবৃন্দ।

 

আশ্রয়নের ঘরে ঘরে ওয়েস্টার্ন ইঞ্জিনিয়ারিং এর ত্রাণ  নিয়ে হাজির চেয়ারম্যান আনোয়ারুল ইসলাম মালিথা

আমলা অফিস ॥ করোনা ভাইরাসের কারণে শ্রমজীবি মানুষ প্রায় অসহায় হয়ে পড়েছেন। সব চেয়ে বেশি দুর্ভোগে এখন খেটে খাওয়া মানুষ। তাদের ঘরে একবেলা খাবারের আশায় পথ চেয়ে থাকছেন সরকার ও বেসরকারী সাহায্যের জন্য। আবার সব খাদ্য সামগ্রী নিতে গিয়ে অনেকেই কষ্ট পাচ্ছেন। এর মধ্যে রয়েছে করোনা ভাইরাস সংক্রামণের আশঙ্কাও। কুষ্টিয়ার মিরপুর উপজেলা আমলা ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান ও মিরপুর উপজেলা আওয়ামী লীগের যুগ্ম-সাধারন সম্পাদক আনোয়ারুল ইসলাম মালিথা নিয়েছেন ব্যতিক্রমধর্মী উদ্যোগ। তিনি  খেটে খাওয়া এসব মানুষের বাড়ী বাড়ী গিয়ে নিজে হাতে খাবার নিয়ে দিয়ে আসছেন। দেশের শীর্ষ স্থানীয় ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠান ওয়েস্টার্ন ইঞ্জিনিয়ারিং প্রাইভেট লিমিটেডের পক্ষ থেকে তিনি মানুষের বাড়ী বাড়ী গিয়ে এসব খাবার পৌঁছে দিচ্ছেন। বৃহস্পতিবার বিকেলে তিনি মিরপুর উপজেলার আমলা ইউনিয়নের আশ্রয়ন প্রকল্পের ১২১ বাড়িতেই খাবার পৌঁছে দিয়েছেন নিজ হাতে। হাতে খাদ্য সামগ্রী নিয়ে তিনি এসব বাড়ীর দরজার সামনে গিয়ে ডেকেছেন। সাধারন মানুষের কাছে এ যেন নাই চাইতেই হঠাৎ পাওয়া। বাড়ী বাড়ী গিয়ে তিনি খাবার বিতরণের সাথে তিনি তাদের মাঝে সচেতনতাও সৃষ্টি করেন। আমলা আশ্রয়ন প্রকল্পের বাসিন্দা রহিমা খাতুন বলেন, এই ভাইরাসের কারণে কেউ বাইরে যেতে পারছে না। একদিন কাজ না করলে পরের দিন খাবার থাকে না। খুব চিন্তায় পড়ে ছিলাম ছেলে মেয়ে নিয়ে। কি খাবো? কোথায় পাবো? কিন্তু বিকেলে হঠাৎ দেখি চেয়ারম্যান সাহেব এসে হাজির। বশির সাহেব নাকি আমাদের জন্য খাবার পাঠিয়েছেন। আনোয়ারুল চেয়ারম্যান সেটাই দিয়ে গেলেন। সুকিলা খাতুন নামের এক নারী বলেন, ঘরে চাল নেই। রাতে কি খাবো খুব চিন্তায় ছিলাম। কিন্তু বশির সাহেবের দেওয়া চাল, আলু এনে আনোয়ারুল চেয়ারম্যান দিয়ে গেলেন। অনেক সময় দেখি যে কিছু নিতে হলে মেম্বর বা চেয়ারম্যানের কাছে যেতে হয়। কিন্তু এই দুঃসময়ে বশির সাহেব ও আনোয়ারুল চেয়ারম্যান আমাদের পাশে এসে দাড়িয়েছেন। খোকন নামের এক বাসিন্দা জানান, ১০দিন কাজ করিনি। ছেলে মেয়ে নিয়ে খুবই কষ্টে আছি। চাল ফুরিয়ে গেছে। কাল সকালে কি রান্না হবে সেই চিন্তা করছিলাম। কিন্তু বিকেলে দেখি আনোয়ারুল চেয়ারম্যান হাতে চাউলের বস্তা নিয়ে হাজির। বশির সাহেব নাকি আমাদের জন্য এসব পাঠিয়েছেন। এতে আমরা খুবই খুশি। ওয়েস্টার্ন ইঞ্জিনিয়ারিং প্রাইভেট লিমিটেডের ব্যবস্থাপনা পরিচালক আলহাজ্ব বশির আহম্মেদ এর অর্থায়নে কুষ্টিয়ার মিরপুর উপজেলার আমলা ইউনিয়নের এক হাজার পরিবারের মাঝে খাদ্য সামগ্রী বিতরণ করেছেন আমলা ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান আনোয়ারুল ইসলাম মালিথা। আনোয়ারুল ইসলাম মালিথা বলেন, আমি চাই না আমার ইউনিয়নের কোন মানুষ না খেয়ে থাকুক। মাননীয় প্রধানমন্ত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনার দেওয়া ত্রাণ সামগ্রী, জেলা ও উপজেলা থেকে আগত সরকারী ত্রাণ সাধারন মানুষের কাছে সঠিকভাবে পৌঁছে দেওয়া হচ্ছে। সেই সাথে আমলা ইউনিয়নে ওয়েস্টার্ন ইঞ্জিনিয়ারিং প্রাইভেট লিমিটেডের ব্যবস্থাপনা পরিচালক আলহাজ্ব বশির আহম্মেদ এর ১ হাজার মানুষের কাছে খাবার বাড়ী বাড়ী গিয়ে পৌঁছে দিয়েছি।

তিনি আরো বলেন, আমলা আশ্রয়ন প্রকেল্পর ১২১টি বাড়ীতেই আলহাজ্ব বশির আহম্মেদ এর দেওয়া খাদ্য সামগ্রী নিজে হাতে করে নিয়ে পৌঁছে দিয়েছি। যাতে সাধারন খেটে খাওয়া মানুষদের কষ্ট করা না লাগে। এসময় উপস্থিত ছিলেন বাংলাদেশ সুইমিং ফেডারেশনের সাবেক যুগ্ম-সাধারন সম্পাদক আমিরুল ইসলাম, মিরপুর উপজেলা পরিষদের ভাইস চেয়ারম্যান মর্জিনা খাতুন, বিশিষ্ট ব্যবসায়ী ও সমাজসেবক হাজ্বী আসাদুল হক মিল্টন, সাংবাদিক জাহিদ হাসান, জামিরুল ইসলাম, নাসিম রেজা, আরিফ আহম্মেদ। এ ছাড়াও সকালে আনোয়ারুল ইসলাম মালিথা আমলা ইউনিয়নের খয়েরপুর, কচুবাড়ীয়া এবং চৌদুয়ার এলাকায় এসব ত্রাণ বিতরণ করেন। উল্লেখ্য, ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠান ওয়েস্টার্ন ইঞ্জিনিয়ারিং প্রাইভেট লিমিটেডের ব্যবস্থাপনা পরিচালক আলহাজ্ব বশির আহম্মেদ দীর্ঘদিন ধরেই এই অঞ্চলে শিক্ষা বিস্তারের জন্য গুরুত্বপূর্ন অবদান রাখছেন। তিনি নিয়মিত বিভিন্ন বিদ্যালয়ে ভবন, অডিটোরিয়াম, বিদ্যালয়ের ফটক, কম্পিউটার ল্যাব, আইসিটি ল্যাব, প্রশাসনিক ভবন, শিক্ষার্থীদের খেলাধুলার বিভিন্ন সামগ্রী বিতরণ করে আসছেন। সেই সাথে আলহাজ্ব বশির আহম্মেদ তার প্রতিষ্ঠানে জেলার হাজারো বেকার যুবকদের চাকুরীর সুযোগ দিয়ে কর্মসংস্থান সৃষ্টি করছেন। এবং বিভিন্ন সামাজিক ও ধর্মীয় প্রতিষ্ঠানে নিয়মিত আর্থিক সহায়তা করে আসছেন। এছাড়া তিনি একজন মিডিয়া বান্ধব ব্যাক্তিত্ব হিসাবে পরিচিত। বিভিন্ন প্রেসক্লাবে তিনি এসি, কম্পিউটারসহ বিভিন্ন সামগ্রী বিতরণ করে আসছেন। দেশের মানুষের দুঃসময়ে তিনি সব সময় এগিয়ে এসেছেন। গরীব ও অসহায় মানুষের পাশে এসে দাঁড়িয়েছেন।

॥ মাওলানা আব্দুল হালীম শরীফ ॥

এ বিপদসংকুল মুহুর্তে বুকফাটা কান্নাবিজড়িত দু’আ-ই বিপর্যয় মুক্তির বড় হাতিয়ার

প্রিয় ভাই ও বোনেরা, আজ আমরা সারা পৃথিবীর মানুষ ভয়ংকর এ করোনা ভাইরাসের ভয়াল থাবার তিক্ত আস্বাদ ভোগ করছি। এমন অদৃশ্য গজবে আজ পর্যন্ত প্রায় অর্ধলক্ষ মানুষের মৃত্যু হয়েছে। বাড়ছে প্রতিদিন মরণ মিছিল। কেউ জানেনা কোথায় তার শেষ ঠিকানা। বেঁচে থাকার আশায় মানুষ সীমিত জ্ঞানে যা কিছু সম্ভব তাই করছে। সাবধানতা পালন অবশ্যই করণীয় সন্দেহ নেই। তবে সব কিছুর শীর্ষে প্রসারিত আল্লাহরাব্বুল আলামিনের রহমতের ছায়া। সে ছায়া পেতে পারি গোনাহর আসামী হয়ে তার ক্ষমার দুয়ারে যদি কড়া নাড়া দেই। স্বচ্ছ আয়নার মত অন্তর নিয়ে স্থীর মন দিয়ে, অশ্র“ ঝরিয়ে, ব্যাস্তহীনভাবে ফরিয়াদ জানাতে পারি ঃÑ আয় আল্লাহ, আমি গোনাহগার, আমাকে মাফ করে দিন। আমি তওবা করছি আপনি কবুল করে নিন। আমি মাগফিরাত কামনা করছি আপনি ক্ষমার দরজা খুলে দিন। আমি সংশোধন হয়েছি। আর গোনাহের পথে চলবো না, আপনি সাহায্য করুন। আয় আল্লাহ, এ চলমান রোগের বীজ ধ্বংস করে দিন। সব রকম মহামারির ছোবল থেকে আমাদের হেফাজত করুন। মেহেরবান মওলা, সামনে মাহে রমজান, ঈদ, কোরবানী এবং বায়তুল্লাহর হজ্ব। সকল ইবাদত আপপনার সšুÍষ্টির লক্ষে পালনের জন্য এমন সর্বগ্রাসী বালা নিঃচিহ্ন করে দিন। সকলকে সুস্থতা নছিব করুন। আয় আল্লাহ, রাসুলে পাকের সঃ অসিলায় দু”আ কবুল করুন। নবীজির বংশের কেউ জীবিত থাকলে তার অসিলায় দু”আ কবুল করুন। এ পাপী বান্দার কোন নেক আমল যা কেবল মাত্র আপনার সন্তুষ্টির জন্যই করেছি, তার অছিলায় দু’আ কবুল করুন। আমার একান্ত বিশ্বাস, অবশ্যই আপনার করুনার আচল বিছিয়ে দেবেন। আপনার দরগাহ তো নিরাশ হবার দরগাহ নয়। আপনিতো বলেছেন ঃ- বল তো কে নিঃসহায়ের ডাকে সাড়া দেন যখন সে ডাকে এবং কষ্ট দুরীভূত করেন । আয় আল্লাহ, তিনি তো আপনিই। রাসুলে পাক সঃ বলেছেন ঃ কোনো সাদা দাড়ির মুমিন বান্দা যদি আল্লাহর দরবারে দু-হাত তুলে ফরিয়াদ জানায়, তাহলে ঐ দুটি হাত খালি অবস্থায় ফিরিয়ে দিতে আল্লাহ লজ্জাবোধ করেন। তাদের হস্তের সাথে আমাদের পাপের হাত আপনি কবুল করে নিন। কবুল করুন আয় আল্লাহ। কত নিস্পাপ শিশু, কত গর্ভবতী মা বোন, কত অসুস্থ রোগাক্রান্ত, কত অসচ্ছল অনাহারী মানুষ কষ্ট পাচ্ছে। মুশকিল আসান করুন। আয় আল্লাহ আপনি দু’আ কবুল করুন। আমীন, আমীন, আমীন। বিরাহমাতিকা ইয়া আরহামার রাহিমীন। লেখক ঃ খতিব, কুষ্টিয়া কেন্দ্রিয় ঈদগাহ

করোনা পরিস্থিতি মোকাবিলায় কুষ্টিয়ায় জেলা প্রশাসকের নেতৃত্বে সেনাবাহিনীর টহল

তিনটার পর ফার্মেসী ছাড়া কোন দোকান খোলা থাকবে না ঃ আসলাম হোসেন

নিজ সংবাদ  ॥ নোভেল করোনা ভাইরাসের প্রাদুর্ভাব ঠেকাতে কুষ্টিয়া প্রশাসনকে সহায়তা করতে বৃহস্পতিবার বিকেলে সেনাবাহিনীর টহল শুরু হয়। কুষ্টিয়া জেলা প্রশাসকের কার্যালয় চত্বর থেকে সেনাবাহিনীর টিম জেলা প্রশাসক মোঃ আসলাম  হোসেনের নেতৃত্বে শহরের কাস্টম মোড়, চৌড়হাস, জগতি বাজার, পিআইডি বাজার, আলফার মোড়, সাদ্দাম বাজার, মজমপুর, পাঁচ ও থানা মোড় থেকে  মোল্লাতেঘড়িয়া মোড়, নিশান ও বজলুর মোড়, কাটাইখানা মোড়, বড়বাজার, সিঙ্গার মোড়, মিউনিসিপ্যাল মার্কেট, ছয় রাস্তার মোড়সহ হাটশ হরিপুর ইউনিয়নের বাজার ও মোড়সহ জনগুরুত্বপূর্ণ স্থানে টহল দেয় সেনা সদস্যরা। এছাড়াও জেলার বিভিন্ন স্থানেও সেনা টহল চলে। এলাকার যে সকল মানুষ করোনা ভাইরাসের বিষয়ে এখনো অসচেতনতা অবলম্বন করছে তাদের সাথে দুরুত্ব বজায় রেখে জেলা প্রশাসক মোঃ আসলাম হোসেন সচেতনতা হওয়ার দিক নির্দেশনামূলক কথা বলে বাড়িতে অবস্থান করতে বলেন এবং বেলা ৩টার পর ফার্মেসী ছাড়া সকল দোকান বন্ধ রাখার ঘোষণা দেন। এ সময় অন্যান্যের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (সার্বিক) মোঃ ওবাইদুর রহমান, সদর উপজেলা নির্বাহী অফিসার জুবায়ের হোসেন চৌধুরী, এনডিসি মুছাব্বেরুল ইসলাম, কুষ্টিয়া প্রেসক্লাব সাধারন সম্পাদক আনিসুজ্জামান ডাবলু প্রমুখ।

এ সময় সেনা সদস্যরা নিত্য প্রয়োজনীয় জিনিসের জন্য বাজার ঘাটে আসা মানুষকে মাস্ক পড়াসহ ভীড় এড়িয়ে চলতে সচেতন করে। করোনা পরিস্থিতি মোকাবেলায় রাজনৈতিক দল ও ধর্মীয় সকল প্রকার সমাবেশ, গণজমায়েত বন্ধ করা, ত্রাণ কার্যক্রম পরিচালনাসহ জেলার সার্বিক আইন-শৃঙ্খলা রক্ষার্থে সেনাবাহিনী সহযোগিতা করে চলেছে।

করোনাভাইরাস

স্পেনে মৃতের সংখ্যা ১০ হাজার ছাড়াল

ঢাকা অফিস ॥ নভেল করোনাভাইরাস সংক্রমণে একদিনে রেকর্ড সংখ্যক লোকের মৃত্যুর মধ্য দিয়ে স্পেনে মৃতের সংখ্যা ১০ হাজার ছাড়িয়েছে। বুধবার থেকে বৃহস্পতিবার পর্যন্ত এক দিনে ৯৫০ জনের মৃত্যুর পর দেশটিতে মৃতের সংখ্যা ১০ হাজার তিন জনে দাঁড়িয়েছে বলে দেশটির স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের বরাত দিয়ে জানিয়েছে বার্তা সংস্থা রয়টার্স। বুধবার দেশটিতে মৃতের সংখ্যা নয় হাজার ৫৩ জন ছিল। চীনের উহান থেকে বিশ্বজুড়ে মহামারী আকারে ছড়িয়ে পড়া ভাইরাসটিতে বৃহস্পতিবার স্পেনে আক্রান্তের সংখ্যা দাঁড়িয়েছে এক লাখ ১০ হাজার ২৩৮ জনে, আগের দিন বুধবার আক্রান্তের সংখ্যা এক লাখ দুই হাজার ১৩৬ জন ছিল বলে জানিয়েছে মন্ত্রণালয়টি।

করোনাভাইরাসে যুক্তরাষ্ট্রে মৃত্যু ৫ হাজার ছাড়াল

ঢাকা অফিস ॥ বিশ্বজুড়ে মহামারী আকারে ছড়িয়ে পড়া নভেল করোনাভাইরাসে যুক্তরাষ্ট্রে আক্রান্তের সংখ্যা দুই লাখ ছাড়িয়ে গেছে; মৃত্যুর সংখ্যা পার করেছে ৫ হাজারের কোঠা। বুধবার ২৪ ঘণ্টাতেই দেশটিতে রেকর্ড ৯০০ জনেরও বেশি লোকের মৃত্যু হয়েছে বলে জনস হপকিন্স বিশ্ববিদ্যালয়ের তথ্যের বরাত দিয়ে জানিয়েছে সিএনএন। মৃতদের মধ্যে কানেকটিকাটের ৬ সপ্তাহের একটি শিশুও আছে বলে জানিয়েছে বিবিসি। এটিই দেশটিতে কোভিড-১৯ এ আক্রান্ত সবচেয়ে কম বয়সী কারও মৃত্যু বলে ধারণা করা হচ্ছে। ডিসেম্বরের শেষদিকে চীনের হুবেই থেকে ছড়িয়ে পড়া প্রাণঘাতী এ করোনাভাইরাসে যুক্তরাষ্ট্রে আক্রান্তের সংখ্যা দুই লাখ ১৬ হাজার ৭২১ জনে দাঁড়িয়েছে বলে বৃহস্পতিবার দুপুর নাগাদ দেওয়া পরিসংখ্যানে জানিয়েছে জনস হপকিন্স। ঘণ্টায় ঘণ্টায় আক্রান্ত ও মৃত্যুর সংখ্যা বাড়ছে বলে দেশটির গণমাধ্যমের প্রতিবেদনগুলোতে বলা হচ্ছে। কেন্দ্রীয় সরকারের মজুদে থাকা সুরক্ষা সরঞ্জাম ও চিকিৎসা উপকরণও প্রায় শেষ হয়ে এসেছে বলে ওয়াশিংটন পোস্ট জানিয়েছে। প্রেসিডেন্ট ডনাল্ড ট্রাম্পের প্রশাসন আশ্বস্ত করে বলেছে, তারা পর্যাপ্ত সরবরাহ নিশ্চিত করতে পারবে এবং এজন্য আরও এক হাজার ৬০০ কোটি ডলারের তহবিল রয়েছে। জনস হপকিন্স বিশ্ববিদ্যালয়ের তথ্য অনুযায়ী, যুক্তরাষ্ট্রে কেবল বুধবারই ২৫ হাজারের বেশি মানুষের দেহে করোনাভাইরাস শনাক্ত হয়েছে। এর মধ্যে নিউ ইয়র্কের অবস্থাই সবচেয়ে ভয়াবহ; শহরটিতে একদিনেই এক হাজার তিনশর বেশি মানুষ মারা গেছে। বেশ কয়েকটি করুণ ছবিতে শহরটির হাসপাতালগুলোর বাইরে শীতাতপ নিয়ন্ত্রিত ট্রাকবোঝাই অসংখ্য মৃতদেহ দেখা গেছে বলে জানিয়েছে বিবিসি। নিউ অরলিয়ন্স ও ডেট্রয়টেও আক্রান্তের সংখ্যা হু হু করে বাড়ছে। ফ্লোরিডা, জর্জিয়া ও মিসিসিপিতে লকডাউন ঘোষণা করা হয়েছে। এর ফলে দেশটির ৭৫ শতাংশ জনগোষ্ঠীই এখন লকডাউন বা ঘরবন্দি দশায় আছেন। সংক্রমণ কমিয়ে আনতে নেওয়া নানান পদক্ষেপের পরও যুক্তরাষ্ট্রে কোভিড-১৯ এ দুই লাখ ৪০ হাজারের মতো মানুষ মারা পড়তে পারে বলে দেশটির কর্মকর্তারা আশঙ্কা করছেন।

যুক্তরাষ্ট্রে করোনাভাইরাসের প্রাদুর্ভাবের গতিপ্রকৃতির সঙ্গে ইতালির ব্যাপক মিল দেখা যাচ্ছে বলে সতর্ক করেছেন যুক্তরাষ্ট্রের ভাইস প্রেসিডেন্ট মাইক পেন্স। ইতালিতে করোনাভাইরাস এখন পর্যন্ত ১৩ হাজারের বেশি মানুষের প্রাণ কেড়ে নিয়েছে যা একক দেশের হিসাবে বিশ্বের সর্বোচ্চ। করোনাভাইরাসের কারণে দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের পর এবারই প্রথম যুক্তরাজ্য উইম্বলডন টুর্নামেন্ট বাতিল করেছে। ক্ষতি পুষিয়ে নিতে দেশের ইতিহাসে সবচেয়ে বড় আর্থিক প্রণোদনার প্রতিশ্র“তি দিয়েছেন কানাডার প্রধানমন্ত্রী জাস্টিন ট্রুডো। প্রাণঘাতী এ ভাইরাসে মৃতের সংখ্যা তিন হাজার ছাড়িয়ে গেছে ইরানে। বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার প্রধান টেড্রোস আধানম গেব্রিয়েসুস কয়েক দিনের মধ্যে বিশ্বব্যাপী আরও ১০ লাখ লোক আক্রান্ত হতে পারেন বলে শঙ্কা প্রকাশ করেছেন। বৃহস্পতিবার দুপুর পর্যন্ত জনস হপকিন্স বিশ্ববিদ্যালয়ের হালনাগাদ তথ্য জানাচ্ছে, বিশ্বজুড়ে নভেল করোনাভাইরাসে আক্রান্তের সংখ্যা নয় লাখ ৩৭ হাজার ৭৮৩ জন, মৃত্যুর সংখ্যা ৪৭ হাজার ২৭৩ এবং এ পর্যন্ত সুস্থ হয়েছেন এক লাখ ৯৪ হাজার ৪০৫ জন।

বিক্রি নেই, তেলের দাম ঠেকতে পারে ‘শূন্যে’

ঢাকা অফিস ॥ বিশ্বের তেলের চাহিদা এখন তলানিতে। কারণ রাস্তাঘাট সব ফাঁকা, উড়োজাহাজগুলো বসা, কারখানাগুলো অন্ধকার। উল্টো দিকে তেলের সরবরাহ বাড়ছেই। সৌদি আরব ও রাশিয়ার মধ্যে তেলের দাম নিয়ে দ্বন্দ্বের পর থেকে উৎপাদনে তেজিভাব রয়েছে। যুক্তরাষ্ট্রও আগ বাড়িয়ে তেলের উৎপাদন বন্ধ করতে চায় না। এমতাবস্থায় তেলের সরবরাহে এমন উপচে পড়া পরিস্থিতি হতে পারে যে, বিক্রি না হওয়া কোটি কোটি ব্যারেল তেল গুদামজাত করার জায়গা শিগগিরই ফুরিয়ে আসতে পারে। দাম নেমে যেতে পারে শূন্যের কাছাকাছি। নভেল করোনাভাইরাসের মহামারীতে বিশ্বজুড়ে অচলাবস্থার মধ্যে চাহিদা অভূতপূর্বভাবে কমে অপরিশোধিত তেলের দাম ১৮ বছরের সর্বনিম্ন পর্যায়ে পৌঁছেছে বলে সিএনএনের প্রতিবেদনে বলা হয়েছে। নিওবার্জার বারমেনের জ্যেষ্ঠ জ্বালানি বিশে¬ষক জেফ উইল বলেন, বাজার যে সিগন্যাল দিচ্ছে তাতে শুধু তেলের চাহিদাই কমবে না তেল কোথাও রাখার জায়গাও না থাকতে পারে। অর্থাৎ গুদাম, শোধনাগার, টার্মিনাল, জাহাজ, পাইপলাইন-ঘটনাচক্রে সবগুলোরই ধারণক্ষমতা সর্বোচ্চ পর্যায়ে পৌঁছাতে পারে, যে পরিস্থিতি ১৯৯৮ সালের পর দেখা যায়নি বলে গোল্ডম্যান স্যাকস জানিয়েছে। সিএনএন বলছে, অপরিশোধিত তেলের শীর্ষ ব্র্যান্ড ওয়েস্ট টেক্সাস ইন্টারমিডিয়েট ও ব্রেন্ট ব্যারেলপ্রতি প্রায় ২০ ডলারে বিক্রি হলেও কোথাও কোথাও দরপতন হয়ে দাম একক সংখ্যায় নেমেছে। জেবিসি এনার্জির বিশে¬ষকরা মঙ্গলবার একটি প্রতিবেদনে লিখেছেন, “সরবরাহের বিপরীতে চাহিদা এতদ্রুত কমছে যে খুব শিগগিরই পরিচালন মুনাফা অর্জন নয়, অপরিশোধিত তেল রাখার জায়গার সংস্থান করা উৎপাদকদের প্রধান উদ্বেগের বিষয় হয়ে দাঁড়াবে।” গুদামজাত করার অন্যতম বিকল্প হচ্ছে- উদ্বৃত্ত সমস্ত অপরিশোধিত তেল জাহাজে তোলা। জেবিসির হিসাবে, এক্ষেত্রে তেল বহনকারী বিশ্বের বড় বড় জাহাজগুলোর শতকরা ২০ শতাংশ ভাসমান গুদাম হিসেবে কাজ করতে পারে। কিন্তু তাতেও সমস্ত উদ্বৃত্ত তেলের জায়গা হবে না। জেবিসি বলছে, এপ্রিলে দৈনিক প্রায় ৬০ লাখ ব্যারেল ‘বাস্তুহীন’ তেল আক্ষরিক অর্থেই কোথাও রাখার জায়গা হবে না। যেখানে এই উৎপাদন মে মাসে ৭০ লাখ ব্যারেল ছাড়িয়ে যেতে পারে। তেলের উদ্বৃত্ত সরবরাহ এমন চিত্র তৈরি করেছে যে কিছু কিছু নিম্নমানের তেলের দাম শূন্যের নিচে পৌঁছেছে। যেমন ওয়াইয়োমিং অপরিশোধিত মানের তেলের দর মাইনাস ১৯ সেন্টে ঠেকেছে বলে গত সপ্তাহে ব¬ুমবার্গ জানিয়েছে। গুদামজাত করার ক্ষমতা কমে যাওয়ার অর্থ হলো এমন একটি সময় আসতে পারে যখন তেলের চাপ থেকে মুক্ত হওয়ার জন্য উৎপাদকদেরকে পয়সা খরচ করতে হতে পারে।

নোবেল করোনা ভাইরাস প্রতিরোধে নিরবে কাজ করে চলেছে কুষ্টিয়া পৌরসভা

বিশ^ব্যাপী নোবেল করোনা ভাইরাস আতঙ্ক চলছে। আমাদের দেশও এ আতঙ্কের বাইরে নয়। প্রধানমন্ত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনার আহবানে সাড়া দিয়ে আমাদের দেশে সরকারী, বেসরকারী এবং ব্যক্তিগত পর্যায়ে চলছে এ ভাইরাস প্রতিরোধে নানামুখি কাজ। কুষ্টিয়া পৌরসভাও এ কাজে পিছিয়ে নেই। নিরবে তাদের সাধ্য অনুযায়ী কাজ করে চলেছে। গত ২৩ মার্চ হতে পৌরসভার জননন্দিত মেয়র আনোয়ার আলীর নির্দেশনায় কাউন্সিলরদের নেতৃত্বে প্রতিটি ওয়ার্ডের বিভিন্ন সড়কে ক্লোটেক মিশ্রিত পানি ছিটানো হচ্ছে। এছাড়া প্রতিটি ওয়ার্ডে আগাছা-জঙ্গল পরিস্কারসহ ৮টি ফগার মেশিন এবং ২১টি জীবানু নাশক ¯েপ্র মেশিনের কাজ চলছে। পৌরসভার নিজস্ব তহবিলের আওতায় জনগুরুত্বপূর্ণ ৩১টি স্থানে স্ট্যান্ডসহ হ্যান্ডওয়াশ বেসিন স্থাপন করা হয়েছে। এছাড়াও প্রান্তিক জনগোষ্টির জীবনমান উন্নয়ন প্রকল্পের আওতায় শহরের দরিদ্র বসতি অঞ্চলে এবং গুরুত্বপূর্ণ স্থানে স্থাপন করা হয়েছে ৫০টি হ্যান্ড ওয়াসিং স্টেশন, যা চলমান থাকবে। হাইজিনপ্যাক ডিস্টিবিউশনের আওতায় ১১,৮৮৫ টি পরিবারের মধ্যে ৫৯,৪২৫ পিচ সাবান, ১১,৮৮৫ পিচ হ্যান্ডসেনিট্যাইজার এবং ৪৭,৫৪০ পিচ মাক্স বিতরণ করা হবে। ইতোমধ্যে পৌরসভার ২১টি ওয়ার্ডের ৮,৩৬৬ পরিবারের মধ্যে ৪১,৮৩০ পিচ (পরিবার প্রতি ৫টি করে) সাবান বিতরণ কাজ চলছে। এছাড়াও দরিদ্র পরিবারের মধ্যে (সিডিসিভূক্ত) বিভিন্ন ক্যাটাগরিতে প্রতিটি পরিবারকে আনুমানিক ২ হাজার ৫০০ টাকা নগদ অর্থ প্রদান করা হবে। এদিকে মেয়র আনোয়ার আলী শহরের বিত্তবানদের নিকট উদাত্ত আহবান জানিয়ে বলেন,  যে যার অবস্থান থেকে বিশ^ব্যাপী প্রাণঘাতি করোনা ভাইরাস মোকাবেলায় এগিয়ে আসুন এবং কেউ যেন অনাহারে না থাকে এ বিষয়ে আপনাদের সহযোগিতা কামনা করি। তিনি বলেন, আসুন আমরা সরকারের সকল নির্দেশনা মেনে চলি। সংবাদ বিজ্ঞপ্তি

দেশে আরো ২ জন করোনার আক্রান্ত – আইইডিসিআর

ঢাকা অফিস ॥ গত ২৪ ঘন্টায় দেশে আরো ২ জন করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছেন। এ নিয়ে আক্রান্তের সংখ্যা দাঁড়িয়েছে ৫৬ জন। রাজধানীর মহাখালীতে স্বাস্থ্য অধিদফতরের রোগতত্ত্ব, রোগনিয়ন্ত্রণ ও গবেষণা ইনস্টিটিউটের (আইইডিসিআর) নিয়মিত অনলাইন ব্রিফিংয়ে স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের পরিচালক (এমআইএস) ডা. মো.হাবিবুর রহমান এ তথ্য জানান। ডা. হাবিবুর রহমান বলেন, ‘আমরা গত ২৪ ঘন্টায় ১৪১ জনের নমুনা সংগ্রহ করে পরীক্ষা করিয়েছি। সর্বমোট ১ হাজার ৯শ’ জনের নমুনা পরীক্ষায় করোনা আছে এমন সংক্রমিত ব্যক্তির সংখ্যা ৫৬ জন। অর্থাৎ গত ২৪ ঘন্টায় নতুন ২ জন আক্রান্ত রোগী শনাক্ত হয়েছে। এই ৫৬ জনের মধ্যে ইতোপূর্বে ৬ জন মারা গেছেন এবং ২৬ জন সুস্থ হয়ে বাড়ি গেছেন। এই মুহূর্তে হাসপাতালে চিকিৎসাধীন রয়েছেন ২৪ জন।’ তিনি জানান, গত ২৪ ঘন্টায় আইসোলেশনে গেছেন ৫ জন । বর্তমানে আইসোলেশনে আছেন ৭৮ জন। বৈশ্বিক করোনা পরিস্থিতি সম্পর্কে তিনি বলেন, এ পর্যন্ত বিশ্বের ৮ লাখ ২৬ হাজার ৬২৬ জন আক্রান্ত হয়েছেন। মৃত্যুবরণ করেছেন ৪০ হাজার ৫৯৮ জন। গত ২৪ ঘন্টায় আক্রান্ত হয়েছেন ৭২ হাজার ৭৩৬ জন এবং মৃত্যুবরণ করেছেন ৪ হাজার ১৯৩ জন। দক্ষিণ-পূর্ব এশিয়ার এ পর্যন্ত ৫ হাজার ১৭৫ জন আক্রান্ত হয়েছেন। মৃত্যুবরণ করেছেন ১৯৫ জন। গত ২৪ ঘন্টায় আক্রান্ত হয়েছেন ৯৬০ জন এবং মৃত্যুবরণ করেছেন ২৯ জন।

মিরপুরে ত্রাণ বিতরণ করলেন মাহবুবউল আলম হানিফ

আমলা অফিস ॥ কুষ্টিয়ার মিরপুরে করোনা ভাইরাসের সংক্রমণ মোকাবেলা ও প্রতিরোধে অসহায়, দুস্থদের মাঝে জরুরী খাদ্য ও স্যানিটেশন বিতরন করলেন বাংলাদেশ আওয়ামীলীগের যুগ্ম সাধারন সম্পাদক ও কুষ্টিয়া সদর আসনের সংসদ সদস্য মাহবুবউল আলম হানিফ। গতকাল বৃহস্পতিবার বিকেলে মিরপুর উপজেলা দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা কমিটির আয়োজনে মিরপুর উপজেলা অডিটোরিয়ামে এ ত্রাণ বিতরণ করা হয়। এসময় মিরপুর উপজেলা উপজেলা দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা কমিটির সভাপতি ও উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান কামারুল আরেফিনের সভাপতিত্বে প্রধান অতিথি হিসাবে ত্রাণ বিতরণ কার্যক্রমের আনুষ্ঠানিক উদ্বোধন করেন আওয়ামী লীগের যুগ্ম-সাধারন সম্পাদক ও কুষ্টিয়া-৩ আসনের সংসদ সদস্য মাহাবুবউল আলম হানিফ। এসময় বিশেষ অতিথি উপস্থিত ছিলেন মিরপুর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা লিংকন বিশ্বাস, উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি এ্যাডভোকেট আব্দুল হালিম, মিরপুর পৌর মেয়র এনামুল হক মালিথা, ভাইস চেয়ারম্যান আবুল কাশেম জোয়ার্দ্দার, মর্জিনা খাতুন, মিরপুর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা ওসি আবুল কালাম প্রমুখ। এসময় বিভিন্ন ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যানগণ, জেলা ও উপজেলা আওয়ামী লীগের নেতৃবৃন্দ, আওয়ামী লীগের অংগ সংগঠনের নেতাকর্মীরা উপস্থিত ছিলেন। পরে মাহাবুব উল আলম হানিফ এমপি মিরপুর উপজেলার ধুবাইল ইউনিয়নের ত্রাণ বিতরণের উদ্বোধন করেন।