করোনাভাইরাস

বিশ্বনেতাদের কারা আক্রান্ত, কারা নন

ঢাকা অফিস ॥ গত বছরের শেষ দিকে চীনের উহান থেকে ছড়িয়ে নভেল করোনাভাইরাসের মহামারী এখন সারা বিশ্বের মানুষকে আক্রান্ত করেছে। প্রায় আড়াই মাসের লড়াইয়ে চীনের কোনো শীর্ষ কর্মকর্তা বা রাজনীতিবিদ আক্রান্ত হওয়ার খবর পাওয়া না গেলেও ইউরোপ ও আমেরিকাজুড়ে অনেক দেশের নেতাদেরকে আক্রান্ত করেছে কোভিড-১৯ নামে প্রাণঘাতী এই রোগ। করোনাভাইরাসে রাজনীতিবিদ ও তাদের পরিবারের সদস্যরাও আক্রান্ত হচ্ছেন। আক্রান্ত রাষ্ট্র নেতাদের তালিকার সর্বষেশ যুক্ত হয়েছেন ব্রিটেনের সরকাপ্রধান ও রাজপুত্র। আন্তর্জাতিক গণমাধ্যমের সংবাদের ভিত্তিতে নতুন করোনাভাইরাসে সংক্রমিত ও সংক্রণের আশঙ্কায় থাকা বিশ্ব নেতাদের একটি তালিকা পাঠকদের জন্য তুলে ধরা হল:- যুক্তরাজ্য: ব্রিটিশ প্রধানমন্ত্রী বরিস জনসন বিশ্বের গুরুত্বপূর্ণ নেতাদের মধ্যে প্রথম যিনি নভেল করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছেন। শুক্রবার টুইটারে এক ভিডিও বার্তায় তিনি জানান, পরীক্ষায় করোনাভাইরাস ‘পজেটিভ’ আসার পর তিনি নিজেকে আলাদা (আইসোলেশন) রেখেছেন। রয়টার্সের খবরে বলা হয়, গত ২৪ ঘণ্টায় জনসনের মধ্যে ‘মৃদু উপসর্গ’ দেখা দেয়। এরপর পরীক্ষায় তার করোনাভাইরাস ধরা পড়ে। গুরুত্বপূর্ণ বিশ্ব নেতাদের মধ্যে জনসনই প্রথম এ ভাইরাসে আক্রান্ত হলেন। এর একদিন আগেই এ ভাইরাসের কবলে পড়েছেন ব্রিটিশ রাজপরিবারের যুবরাজ চার্লস। কয়েক দিন আগে ভাইরাসটিতে আক্রান্ত ব্রিটেনের স্বাস্থ্য প্রতিমন্ত্রীর সঙ্গে বৈঠকের পর জনসন নিজের মধ্যে কোনো লক্ষণ নেই বলে এখনই পরীক্ষা-নিরীক্ষা করবেন না বলে দিয়েছেন তিনি। এর মধ্যে যুক্তরাজ্যের স্বাস্থ্যমন্ত্রী ম্যাট হ্যানককও করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছেন। তবে ৫৫ বছর বয়সী জনসন ও ৪১ বছর বয়সী হ্যানকক- দুজনেরই উপসর্গ মৃদু; তারা বাসা থেকে কাজ চালিয়ে যাবেন বলেছেন। জনসনের প্রেমিকা ৩২ বয়সী ক্যারি সিমন্ডস এখন সাত মাসের গর্ভবতী। তার মধ্যে কোনো উপসর্গ আছে কিনা জানায় যায়নি। এর আগে যুক্তরাজ্যের ব্রেক্সিট নেগোশিয়েটর ডেভিড ফ্রস্ট নিজের মধ্যে করোনাভাইরাসের মৃদু উপসর্গ দেখা দেওয়ার পর স্বেচ্ছায়-বিচ্ছিন্নবাসে রয়েছেন। ইউরোপীয় ইউনিয়ন: ইউরোপীয় ইউনিয়নের প্রধান নেগোশিয়েটর মিশেল বার্নিয়ের কোভিড-১৯ রোগে আক্রান্ত প্রথম দিককার রাজনীতিকদের মধ্যে অন্যতম। চলতি মাসের প্রথম দিকে ফ্রান্সে নিজের ঘর থেকে এক ভিডিও বার্তায় তিনি আক্রান্ত হওয়ার খবর দেন। ফ্রান্সে চারজন রাজনীতিবিদ নতুন করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছেন: সংসদ সদস্য, পার্লামেন্টের এক কর্মকর্তা, সংস্কৃতিমন্ত্রী এবং প্রতিবেশ প্রতিমন্ত্রী। স্পেনের প্রধানমন্ত্রী পেদ্রো সানচেজের স্ত্রী করোনাভাইরাসে আক্রান্ত। তারা দুজনেই সুস্থ আছেন এবং প্রতিরোধমূলক ব্যবস্থা অনুসরণ করছেন। নিজের চিকিৎসকের মধ্যে নভেল করোনাভাইরাস ধরা পড়ার পর জার্মান চ্যান্সেলর এঙ্গেলা মেরকেল নিজেকে বিচ্ছিন্ন রেখেছিলেন। কিন্তু দুই বারের পরীক্ষায় তার মধ্যে ভাইরাস ধরা পড়েনি। এর আগে মোনাকোর রাজপুত্র দ্বিতীয় অ্যালবার্ট শ্বাসতন্ত্রের এই রোগে আক্রান্ত হওয়ার কথা জানিয়েছেন। যুক্তরাষ্ট্রঃ ব্রাজিলের একটি প্রতিনিধি দলের সদস্য নতুন করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হওয়ার আগে তাদের সংস্পর্শে আসায় গত সপ্তাহে প্রেসিডেন্ট ডনাল্ড ট্রাম্পের পরীক্ষা করা হয়। তবে তার শরীরে ভাইরাসটি পাওয়া যায়নি। মিয়ামির মেয়র ফ্রান্সিস সুয়ারেজ ভাইরাসটিতে আক্রান্ত হয়েছেন। আক্রান্ত ব্যক্তিদের সংস্পর্শে আসার পরে নয় আইনপ্রণেতাও কোয়ারেন্টিনে আছেন। এদের মধ্যে তিনজন কোভিড-১৯ রোগে আক্রান্ত হয়েছেন। কানাডা: কানাডার প্রধানমন্ত্রী জাস্টিন ট্রুডোর স্ত্রী সোফি করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছেন। তাকে পরিবার থেকে বিচ্ছিন্ন রাখা হয়েছে। কোয়ারেন্টিনে থেকে ট্রুডো দায়িত্ব পালন করছেন। কোনও লক্ষণ না দেখায় ভাইরাসটির জন্য তাকে পরীক্ষা করা হয়নি। ব্রাজিল: যুক্তরাষ্ট্র সফরে আসা ব্রাজিলের একটি প্রতিনিধি দলের তিন সদস্য করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হিসেবে শনাক্ত হয়েছে;  ওয়াশিংটনে ব্রাজিলের শার্জ দ্য অ্যাফেয়ার্স, একজন সিনেটর ও প্রেসিডেন্টের প্রেসসচিব। ফিলিপিন্স: নতুন করোনাভাইরাসে সংক্রমিত এক রোগীর সংস্পর্শে আসার পর ফিলিপিন্সের প্রেসিডেন্ট রডরিগো দুতের্তেকে পরীক্ষা করে ফলাফল নেতিবাচক এসেছে। ইরান: সরকারের আট শতাংশ সদস্য প্রাণঘাতী ভাইরাসটিতে আক্রান্ত- ২৯০ জন সাংসদের মধ্যে ২৩ জনের শরীরে ভাইরাস মিলেছে। দুই সাংসদ আক্রান্ত হয়ে মারা গেছেন। ইরানের বেশ কয়েজন ভাইস-প্রেসিডেন্টও আক্রান্ত হয়েছে। অস্ট্রেলিয়া: দেশটির স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর শরীরে করোনাভাইরাস ধরা পড়েছে। এর এক সপ্তাহেরও আগে যুক্তরাষ্ট্রের অ্যাটর্নি জেনারেল উইলিয়াম বার, হোয়াইট হাউসের জ্যেষ্ঠ উপদেষ্টা ইভাঙ্কা ট্রাম্প ও হোয়াইট হাউজের কয়েকজন কর্মকর্তার সঙ্গে তার  বৈঠক হয়। মঙ্গোলিয়া: একদিনের চীন থেকে ফিরে আসার পর রাষ্ট্রপতি খালতমাজিন বাতুলগাসহ অন্য কর্মকর্তাদের দুই সপ্তাহের কোয়ারেন্টিনে রাখা হয়েছে। কিন্তু তাদের পরীক্ষায় নেতিবাচক ফল এসেছে।

যুক্তরাষ্ট্রে করোনাভাইরাসে আক্রান্তের সংখ্যা লাখ ছাড়াল

ঢাকা অফিস ॥ মহামারী আকারে ছড়িয়ে পড়া করোনাভাইরাসে কেবল যুক্তরাষ্ট্রেই আক্রান্তের সংখ্যা এক লাখ ছাড়িয়ে গেছে। শুক্রবার একদিনেই দেশটিতে ১৮ হাজারের বেশি মানুষের শরীরে কভিড-১৯ ধরা পড়েছে বলে কর্মকর্তাদের বরাত দিয়ে বার্তা সংস্থা রয়টার্স জানিয়েছে। প্রাণঘাতী এ ভাইরাসে যুক্তরাষ্ট্রে মৃতের সংখ্যাও এক হাজার ৬০০ পেরিয়ে গেছে। এদিকে করোনাভাইরাসের কারণে মুখোমুখি হওয়া ক্ষতির হাত থেকে যুক্তরাষ্ট্রকে অর্থনীতিকে টেনে তুলতে মার্কিন কংগ্রেসে পাস হওয়া দুই দশমিক দুই ট্রিলিয়ন ডলারের প্রণোদনা বিলে শুক্রবারই স্বাক্ষর করেছেন দেশটির প্রেসিডেন্ট ডনাল্ড ট্রাম্প। তার স্বাক্ষরের মধ্য দিয়ে বিলটি আইনে পরিণত হল। এই প্রণোদনা করোনাভাইরাসের আতঙ্কের মধ্যেও মার্কিন শ্রমিকদের স্বস্তি দেবে বলে ট্রাম্প মন্তব্য করেছেন। দেশটিতে কভিড-১৯ এ আক্রান্তের সংখ্যা হু হু করে বাড়তে থাকায় চিকিৎসা উপকরণের ঘাটতি নিয়ে চিকিৎসকরা হাহাকার করছেন বলে জানিয়েছে রয়টার্স। পরিস্থিতি মোকাবেলায় ট্রাম্প তার জরুরি ক্ষমতা প্রয়োগ করে জেনারেল মোটরসকে ভেন্টিলেটর উৎপাদনে লাগিয়ে দিয়েছেন। যুক্তরাষ্ট্রের সবচেয়ে বড় এ অটোমেকার কোম্পানি দরকষাকষির নামে ‘সময় অপচয়’ করছিল বলে প্রেসিডেন্ট অভিযোগও করেছেন। মার্কিন কোম্পানিগুলোকে চিকিৎসা উপকরণ বানাতে বাধ্য করতে ট্রাম্পের ওপর কোরীয় যুদ্ধের সময়কার প্রতিরক্ষা উৎপাদন আইন সচল করার চাপ ছিল; যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট তার বদলে কোম্পানিগুলোর স্বেচ্ছা সহযোগিতার ওপর জোর দিচ্ছিলেন। নিউ ইয়র্ক সিটি, নিউ অরলিয়ন্স, ডেট্রয়েটসহ বিভিন্ন এলাকার হাসপাতালগুলো এখন কভিড-১৯ রোগীদের ওষুধ ও চিকিৎসা উপকরণ সংকটে ভুগছে। দেশটিতে শুক্রবার পর্যন্ত এক লাখ তিন হাজারের বেশি আক্রান্ত শনাক্ত হয়েছে। বিশ্বে মোট আক্রান্তের সংখ্যাও ছয় লাখ ছুঁইছুঁই; মৃতের সংখ্যা পেরিয়েছে ২৭ হাজার। আক্রান্তের সংখ্যায় চীনকে ছাপিয়ে গেছে ইতালিও। ইউরোপের এ দেশটিতে করোনভাইরাস ৯ হাজারের বেশি মানুষের প্রাণ কেড়ে নিয়েছে; এর মধ্যে উল্লেখযোগ্য সংখ্যকই চিকিৎসক ও স্বাস্থ্যকর্মী।

হাসপাতালের পাশাপাশি বেকার ও ক্ষুদ্র ব্যবসা প্রতিষ্ঠানকে নগদ অর্থ সহায়তায় যুক্তরাষ্ট্রের ইতিহাসে সবচেয়ে বড় আর্থিক প্যাকেজ শুক্রবার কংগ্রেসের নিম্নকক্ষ হাউস অব রিপ্রেজেন্টেটিভে পাস হয়। কয়েকদিনের আলোচনা শেষে বুধবার দুই দশমিক দুই ট্রিলিয়ন ডলারের এ বিলটি সিনেটে অনুমোদিত হয়েছিল। নিম্নকক্ষে পাসের পরপরই এটি ট্রাম্পের স্বাক্ষরের জন্য হোয়াইট হাউসে যায়। ওভাল অফিসে প্রেসিডেন্টের স্বাক্ষরের সময় সেখানে রিপাবলিকান দলের শীর্ষ আইনপ্রণেতারা ছিলেন।

করোনাভাইরাস

আক্রান্তের সংখ্যায় চীনকে ছাড়িয়ে গেল ইতালিও

ঢাকা অফিস ॥ যুক্তরাষ্ট্রের পর ইতালিও নভেল করোনাভাইরাসে আক্রান্ত ব্যক্তির সংখ্যায় চীনকে ছাড়িয়ে গেছে। জনস হপকিন্স বিশ্ববিদ্যালয়ের গবেষকদের হিসাবে শুক্রবার পর্যন্ত ইতালিতে ৮৬ হাজার ৪৯৮ জনের দেহে কোভিড-১৯ ধরা পড়েছে বলে জানিয়েছে সিএনএন। চীনে আক্রান্তের সংখ্যা এখন পর্যন্ত ৮১ হাজার ৯৪৬। এই দুই দেশই অবশ্য যুক্তরাষ্ট্রের পেছনে। শুক্রবার পর্যন্ত বিশ্বের শীর্ষ অর্থনীতির এ দেশটিতে এক লাখ ৪ হাজারের বেশি মানুষের শরীরে করোনাভাইরাস শনাক্ত হয়েছে। ইতালিতে এখন পর্যন্ত প্রাণঘাতী করোনাভাইরাস ৯ হাজারেরও বেশি মানুষের প্রাণ কেড়ে নিয়েছে; এ সংখ্যা এ মুহুর্তে সর্বোচ্চ। এর পরেই আছে স্পেন, সেখানে কোভিড-১৯ এ মৃত্যুর সংখ্যা পৌঁছেছে ৫ হাজার ১৩৮ এ। চীন ও যুক্তরাষ্ট্রে এ নভেল করোনাভাইরাসে মৃতের সংখ্যা যথাক্রমে তিন হাজার ২৯৫ ও এক হাজার ৭১১। প্রাণঘাতী এই ভাইরাসে কেবল শুক্রবারেই ইতালিতে ৯৬৯ জনের মৃত্যু হয়েছে। এটিই দেশটিতে কোভিড-১৯ এ একদিনে সর্বোচ্চ মৃত্যু। করোনাভাইরাস দেশটির স্বাস্থ্য ব্যবস্থাকেও পুরোপুরিই ভেঙে দিয়েছে। উত্তরাঞ্চল পেরিয়ে ভাইরাসের সংক্রমণ এখন ইতালির দক্ষিণেও বিস্তৃত হচ্ছে বলে অনুমান করা হচ্ছে। সেরকমটা হলে মৃতের সংখ্যা আরও বাড়বে বলেও অনুমান বিশ্লেষকদের। তাদের ভাষ্য, ইতালির উত্তরাঞ্চলের তুলনায় দক্ষিণের স্বাস্থ্য ব্যবস্থা বেশ দুর্বল। জনসংখ্যায় ষাটোর্ধ্বেদের সংখ্যা বেশি থাকায় দেশটিতে মৃত্যুহার অন্যদের তুলনায় বেশি বলেও বলছেন অনেকে। মাস্ক, পারসোনাল প্রটেক্টিভ ইকুইপমেন্টের মতো সুরক্ষা উপকরণ এবং চিকিৎসা সরঞ্জামের ঘাটতিও দেশটিকে বিপাকে ফেলেছে।

ঘরবন্দি মানুষের জন্য পুলিশের ‘ডোর টু ডোর শপ’

ঢাকা অফিস ॥ বিশ্বব্যাপী ছড়িয়ে পড়া করোনাভাইরাসের সংক্রমণ রোধ ও ঘরবন্দি মানুষের সহায়তায় চট্টগ্রামে নগর পুলিশের একের পর এক অনন্য উদ্যোগ চমকে দিচ্ছে দেশবাসীকে। এবার ১০ দিনের অঘোষিত লকডাউনে ঘরবন্দি মানুষদের নিত্য প্রয়োজনীয় সামগ্রীর প্রয়োজন মেটাতে চট্টগ্রাম মেট্রোপলিন পুলিশ কমিশনার’র (সিএমপি) উদ্যোগে চালু হচ্ছে ‘ডোর টু ডোর শপ’। বিষয়টি নিশ্চিত করে সিএমপি কমিশনার মো. মাহাবুবর রহমান বলেন, ‘করোনা ঝুঁকির কারণে মানুষ ঘর থেকে বের হতে পারছে না। বলা যায় তারা এক প্রকার গৃহবন্দি অবস্থায় আছেন। তাই কয়েকটি থানার পুলিশ সদস্যরা মানুষের জরুরি প্রয়োজনীয় জিনিসপত্র ও ওষুধ তাদের বাড়িতে পৌঁছে দিচ্ছেন। সামাজিক দায়বদ্ধাতা থেকে বিষয়টিকে আমরা প্রাতিষ্ঠানিকভাবে করার চেষ্টা করছি। এখন থেকে পুলিশ সদস্যদের কয়েকজনের একটি টিম সবসময় এ কাজে নিয়োজিত থাকবে।’ তনি আরো বলেন, ‘করোনা সামলাতে বিজ্ঞানীরা এই মুহূর্তে সামাজিক দূরত্ব মেনে চলার যে নির্দেশনা দিয়েছেন, তাতে মানুষ চাইলেই নিত্য প্রয়োজনে ঘরের বাইরে বের হতে পারছেন না। এ কারণে নগরের ১৬টি থানাতেই এই উদ্যোগ গ্রহণ করা হয়েছে। ইতোমধ্যেই ৮টি থানা তাদের কাজ শুরু করেছে।’ সময় তিনি নিত্য প্রয়োজনীয় পণ্য ও ওষুধসহ যেকোনো প্রয়োজনে চট্টগ্রাম মেট্রোপলিন পুলিশের হটলাইন নম্বরে (০১৪০০০৪০০৪০০) ফোন করার আহ্বান জানান। প্রসঙ্গত, ২৬ মার্চ থেকে দেশব্যপি অঘোষিত লকডাউন শুরুর পর কোতোয়ালী থানার ওসি মোহাম্মদ মহসীন ঘোষণা দেন, প্রয়োজনে জরুরি জিনিসপত্র ও ওষুধ সামগ্রী মানুষের বাসায় পৌঁছে দেবেন তারা। এর পরপরই পতেঙ্গা থানার ওসি উৎপল বড়ুয়া, পাঁচলাইশ থানার ওসি আবুল কাশেম ভূঁইয়াসহ বাকি ওসিরাও এমন উদ্যোগ নিয়ে মানুষের পাশে দাঁড়ান। নগর পুলিশ কমিশনার বিষয়টিকে এবার প্রতিষ্ঠানিক রূপ দিলেন। বিষয়টি নিয়ে বিস্তারিত জানাতে গিয়ে কোতোয়ালী থানার ওসি মোহাম্মদ মহসিন বলেন, ‘নগররবাসীকে ঘরে থাকতে অনুরোধ করেছিলাম। তারা অনুরোধ রেখেছেন। কথা দিয়েছিলাম প্রয়োজনে ঘরের বাজারও আমরা দিয়ে আসব। সেই কথাও রেখেছি। এখন কমিশনার স্যারের নির্দেশে তিন সদস্যের একটি টিম গঠন করা হয়েছে। যারা সার্বক্ষণিক এ কাজটি তদারকি করবেন। এ জন্য একটি গাড়ির ব্যবস্থাও করা হয়েছে। নগরবাসী নিত্য প্রয়োজনীয় যেকোনো দ্রব্যের জন্য ফোন করলে পুলিশ তার বাসায় পণ্য পৌঁছে দেবে।’ তিনি আরো বলেন, ‘আপাতত আমরা মানুষের চাহিদা অনুসারে কিনে দেওয়ার ব্যবস্থা নিয়েছি। চাহিদা বেশি হলে, প্রয়োজন বুঝে গাড়িতেই দোকান বসানো হবে। ভাসমান সেই দোকান থেকে নগরবাসী ন্যায্য দামে পণ্য ক্রয় করতে পারবেন।’

 

সেই তিন বৃদ্ধের বাড়িতে গিয়ে ক্ষমা চাইলেন ইউএনও, দিলেন চাল

ঢাকা অফিস ॥ মাস্ক না পরায় কান ধরিয়ে ছবি তোলা সেই তিন বৃদ্ধের বাড়ি গিয়ে ক্ষমা চাইলেন মনিরামপুর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) আহসান উল্লাহ শরিফী। শনিবার দুপুরে তিনি উপজেলার চিনাটোলা এলাকায় ওই তিন বৃদ্ধের বাড়ি যান। ইউএনও আহসান উল্লাহ শরিফী শুক্রবার (২৭ মার্চ) বিকেলের ঘটনার জন্য ক্ষমা চেয়ে তিন পরিবারকে ১০ কেজি করে চাল দেন। তাদের নিরাপদে বাড়িতে থাকার জন্য বলেন। এরপর যদি খাবার ফুরিয়ে যায় তাহলে স্থানীয় জনপ্রতিনিধির সঙ্গে যোগাযোগ করার জন্য বলেন। তাদের বাড়িতে খাবার পৌঁছে দেয়ারও প্রতিশ্রুতি দেন ইউএনও। এর আগে শুক্রবার বিকেলে মনিরামপুরের নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট ও সহকারী কমিশনার (ভূমি) সাইয়েমা হাসানের নেতৃত্বে ভ্রাম্যমাণ আদালত উপজেলার বিভিন্ন স্থানে অভিযান চালান। বিকেল সাড়ে ৫টার দিকে চিনাটোলা বাজারে অভিযানের সময় ভ্রাম্যমাণ আদালতের সামনে পড়েন প্রথমে দুই বৃদ্ধ। এর মধ্যে একজন বাইসাইকেল চালিয়ে আসছিলেন, অপরজন রাস্তার পাশে বসে কাঁচা তরকারি বিক্রি করছিলেন। তাদের মুখে মাস্ক ছিল না। এ সময় পুলিশ ওই দুই বৃদ্ধকে ভ্রাম্যমাণ আদালতে হাজির করলে সাইয়েমা হাসান শাস্তি হিসেবে তাদের কান ধরিয়ে দাঁড় করিয়ে রাখেন। শুধু তাই নয়, এ সময় নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট নিজেই তার মোবাইল ফোনে এ চিত্র ধারণ করেন। এছাড়া পরে অপর এক ভ্যানচালককে অনুরূপভাবে কান ধরিয়ে দাঁড় করিয়ে রাখেন। এ ঘটনার ছবি ফেসবুকে ছড়িয়ে পড়লে সমালোচনার ঝড় ওঠে। এর জেরে উপজেলা সহকারী কমিশনার (ভূমি) সাইয়েমা হাসানকে প্রত্যাহার করা হয়েছে।

করোনায় ঢাকার বায়ু সহনীয় পর্যায়ে

ঢাকা অফিস ॥ করোনা প্রভাবে সারাদেশে ১০ দিনের সাধারণ ছুটির তৃতীয় দিন চলছে। গণপরিবহণ বন্ধ থাকায় ঢাকায় বায়ুর মান কিছুটা উন্নত হয়েছে। বায়ুদূষণ নিয়ে কাজ করা সংস্থা আইকিউ এ্যায়ার ভিজ্যুয়াল র‌্যাকিং অনুযায়ী বর্তমানে ঢাকার অবস্থান ১০৫ পয়েন্ট নিয়ে ১৯ তম স্থানে। এরআগে ঢাকার অবস্থান থাকতো প্রথম পাঁচের মধ্যে। বর্তমানে ঢাকায় যে মানের বায়ু রয়েছে তা বিশেষ শ্রেণীর মানুষের জন্য অস্বাস্থ্যকর। তবে আগে সব ধরণের মানুষের জন্য খুবই অস্বাস্থ্যকর পর্যায়ের ছিল ঢাকার বায়ু। এর আগে আইকিউ এ্যায়ার ভিজ্যুয়াল ২০১৯ সালের প্রকাশিত রিপোর্টে বাংলাদেশকে বিশ্বের সবচেয়ে দূষিত দেশ হিসেবে তালিকাভুক্ত করা হয়েছিল। আর শহর হিসেবে ঢাকা ছিল বিশ্বের ২য় নিকৃষ্ট বায়ুর শহরের তালিকায়। বিশ্বের সকল শহরের রিয়েল টাইম বায়ুর মান প্রকাশ করে থাকে সংস্থাটি। পিএম ২.৫ মানের ওপর ভিত্তি করে তালিকাটি প্রকাশ করা হয়েছিল। উল্লেখ্য, ২০১৮ সালের তালিকাতেও বাংলাদেশের স্থান ছিল সবার শীর্ষে। পাকিস্তান দ্বিতীয় অবস্থানে থাকলেও ভারতের অবস্থান ছিল ৩ নম্বরে। অঞ্চল হিসেবে দক্ষিণ এশিয়ার শহরগুলো সবচেয়ে বেশি বায়ু দূষণের শিকার। এ অঞ্চলের ৬৫৫ শহরের মধ্যে মাত্র ৬টি শহরের বায়ু মান সম্মত অবস্থানে রয়েছে। ২০১৯ সালের সবচেয়ে দূষিত ৩০ শহরের ২১টি শহরের অবস্থান ভারতে। আর বাকি শহরগুলো অবস্থানও এশিয়ায়।

মোহাম্মদপুরে ৫৪ ভবন লাল কালিতে চিহ্নিত, পুলিশের নজরদারি

ঢাকা অফিস ॥ রাজধানীর মোহাম্মদপুরের কাদেরাবাদ হাউজিংসহ এলাকার ৫৪টি ভবনে লাল কালিতে চিহ্নিত করেছে পুলিশ। বাড়িগুলোতে পুলিশের নজরদারি থাকবে। রোগতত্ত্ব রোগ নিয়ন্ত্রণ ও গবেষণা ইনস্টিটিউটের (আইইডিসিআর) পক্ষ থেকে নির্দেশনা পাওয়ার পর ডিএমপির তেজগাঁও বিভাগের মোহাম্মদপুর থানা পুলিশ ঐ ভবনগুলো ঝুঁকিপূর্ণ বলে লাল কালিতে চিহ্নিত করে। মোহাম্মদপুর থানার ওসি আবদুল লতিফ বলেন, লকডাউন নয়, আইইডিসিআর থেকে পুলিশ সদর দপ্তর মাধ্যমে পাওয়া ঐ তালিকা অনুযায়ী ৫৪টি বাসাকে ঝুঁকিপূর্ণ হিসেবে উল্লেখ করে লাল কালিতে চিহ্নিত করা হয়েছে। হোম কোয়ারেন্টাইনের সব নিয়ম যেন ঐ ৫৪টি বাসায় পুঙ্খানুপুঙ্খ প্রতিপালন করা হয়, সেজন্য পুলিশের পক্ষ থেকে সব ধরনের উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে।

ক্যারিয়ার নষ্ট করবেন না, কর্মকর্তাদের জনপ্রশাসন প্রতিমন্ত্রী

ঢাকা অফিস ॥ মাঠ প্রশাসনে দায়িত্ব পালনের সময় সরকারি কর্মকর্তারা শৃঙ্খলা ভঙ্গ করলে কঠোর শাস্তি দেওয়া হবে বলে সতর্ক করেছেন জনপ্রশাসন প্রতিমন্ত্রী ফরহাদ হোসেন। তিনি বলছেন, “সরকারি চাকুরেদের জনগণের সেবক হিসেবে কাজ করতে হবে। জেলা প্রশাসকদের (ডিসি) মাধ্যমে তাদের সেই নির্দেশনা দেওয়া হয়েছে, এর ব্যত্যয় হলে ক্যারিয়ার শেষ হয়ে যেতে পারে।” বয়স্ক তিন ব্যক্তিকে কান ধরিয়ে উঠবস করানোর ঘটনায় ‘বেআইনি ও অকর্মকর্তাসুলভ আচরণের’ দায়ে যশোরের মনিরামপুর উপজেলার সহকারী কমিশনার (ভূমি) সাইয়েমা হাসানকে শনিবারই প্রত্যাহার করা হয়। ওই প্রসঙ্গ তুলে ধরে জনপ্রশাসন প্রতিমন্ত্রী বলেন, “কুড়িগ্রামের ডিসি সুলতানা পারভীনের ঘটনার পর আমরা জেলা প্রশাসকদের নির্দেশনা দিয়েছিলেন। “আবারও তাদের বেশকিছু নির্দেশনা দিয়েছি; আমরা বলেছি, আপনাদের (ডিসি) অধীনে যারা কাজ করেন তারা যেন জনগণের সেবক হিসেবে কাজ করেন, কারণ জনগণের জন্যই আপনারা। .. কেউ যেন দায়িত্বে অবহেলা এবং শৃঙ্খলা ভঙ্গ না করেন। এতে ব্যাড ইমেজ তৈরি হচ্ছে, আমরা এর দায়ভার নেব না। দুর্নীতি করার জন্যই মানুষকে হয়রানি করা হয় বলে মত দিয়ে জনপ্রশাসনের কর্মকর্তাদের সতর্ক করে ফরহাদ বলেন, “ক্যারিয়ার নষ্ট করবেন না, ভুল করবেন না।” যথাযথ প্রশিক্ষণ দেওয়ার পরেও মাঠ কর্মকর্তাদের এধরনের আচরণে বিস্ময় প্রকাশ করে তিনি বলেন, “বাহাদুরি দেখানোর জন্য কোনো কাজ করলে, শৃঙ্খলাবিধি ভঙ্গ করলে অবশ্যই ব্যবস্থা নেওয়া হবে।” বিভাগীয় মামলা হওয়ার পরে অনেকেরই পদোন্নতি না হওয়ার কথা উল্লেখ করে জনপ্রশাসন প্রতিমন্ত্রী বলেন, অনেক সময় ব্যাচমেটরা যুগ্ম-সচিব হয়ে গেলেও শুধু মামলার কারণে সিনিয়র সহকারী সচিব পদেই কাউকে কাউকে পড়ে থাকতে হচ্ছে। “কেউ বিভাগীয় মামলায় পড়লে বড়জোর উপসচিব পদে পদোন্নতি পেতে পারেন, এর চেয়ে বেশি দূর আগানো সম্ভব নয়। এসব জানার পরেও কেন এমন করেন? “সময় পেলে আমি লোক প্রশাসন প্রশিক্ষণ একাডেমিতে ক্লাস নেই, সেখানে নবীন কর্মকর্তাদের আমার সংসদ সদস্যের অভিজ্ঞতার আলোকে পরামর্শ দেই। বিশেষ করে ইউএনওদের বেশি বলি, কারণ তারা একেবারে মাঠ পর্যায়ে কাজ করেন,” বলেন ঢাকা সিটি কলেজের এক সময়ের ইংরেজি বিভাগের শিক্ষক ফরহাদ। মাঠ প্রশাসনে কাজ করার সময় একজন কর্মকর্তা কী কী করছেন এখন আর তা লুকানো কোনো সুযোগ থাকে না বলেও মনে করেন প্রতিমন্ত্রী। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা জনমুখী এবং দুর্নীতিমুক্ত জনপ্রশাসন গড়ার নির্দেশ দিয়েছেন জানিয়ে ফরহাদ বলেন, “কিন্তু কিছু কর্মকর্তার কারণে অনেক সময় আমাদের বিব্রত অবস্থার মধ্যে পড়তে হয়।” তিনজন বয়স্ক ব্যক্তিকে কান ধরিয়ে মনিরামপুর উপজেলার সহকারী কমিশনার (ভূমি) সাইয়েমা হাসান ভুল করেছেন বলে মত দেন জনপ্রশাসন প্রতিমন্ত্রী। তিনি বলেন, “মনিরামপুর উপজেলার ইউএনও ওই বয়স্ক তিনজনের কাছে গিয়ে ক্ষমা চেয়েছেন। তাদের হাতে খাদ্য সামগ্রী এবং হ্যান্ড স্যানিটাইজার তুলে দিয়েছেন।” আগামী ৫ এপ্রিল অফিস খোলার পর ইতোমধ্যে মনিরামপুর থেকে প্রত্যাহার করে নেওয়া সাইয়েমার বিরুদ্ধে বিভাগীয় মামলার কার্যক্রম শুরু করা হবে বলেও জানান জনপ্রশাসন প্রতিমন্ত্রী। জনপ্রশাসন সচিব শেখ ইউসুফ হারুন বলেন, “সব জেলা প্রশাসকদের নির্দেশনা দেওয়া হয়েছে কেউ যেন অকর্মকর্তাসুলভ আচরণ না করেন। “কেউ এ ধরনের আচরণ করলে তাদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়ার নির্দেশনা আমরা ডিসিদের দিয়েছি। বলেছি- মনে রাখতে হবে তারা মাস্টার নয়, সেবক; তারা যেন জনগণের সেবা করেন।”

করোনাভাইরাস 

হাসপাতাল তৈরির ঘোষণার পর এলাকাবাসীর বিক্ষোভ-ভাঙচুর

ঢাকা অফিস ॥ নভেল করোনাভাইরাসের মহামারীর মধ্যে আক্রান্তদের চিকিৎসার জন্য আকিজ গ্রুপ তেজগাঁও শিল্পাঞ্চলে অস্থায়ী ভিত্তিতে দ্রুত একটি হাসপাতাল নির্মাণের ঘোষণা দেওয়ার পর এলাকাবাসী সেখানে গিয়ে বিক্ষোভ-ভাঙচুর করেছে। গতকাল শনিবার দুপুরে তেজগাঁওয়ের শান্তা টাওয়ারের পাশে আকিজের জমিতে নির্মাণাধীন ওই প্রকল্পে এলাকাবাসীর হামলায় নিরাপত্তাকর্মী ও নির্মাণ শ্রমিকসহ তিনজন আহত হয়েছেন বলে পুলিশ জানিয়েছে। আকিজ গ্রুপের ব্যবস্থাপনা পরিচালক শেখ বশির উদ্দিন জানিয়েছিলেন, আগামী ৭/৮ দিনের মধ্যে তিনশ শয্যার ওই হাসপাতাল প্রস্তুত করতে তাদের ইঞ্জিনিয়ার ও আর্কিটেক্টরা কাজ শুরু করেছেন। হাসপাতালে আইসিইউসহ করোনাভাইরাসে আক্রান্তদের চিকিৎসার প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা থাকবে। চিকিৎসা দেওয়া হবে বিনামূল্যে। কিন্তু হাসপাতাল হলে ওই এলাকার বাসিন্দারা করোনাভাইরাসের ঝুঁকিতে পড়বেন- এমন আশঙ্কায় শনিবার দুপুরে দুই শতাধিক লোক আকিজের ওই স্থাপনায় গিয়ে নিরাপত্তাকর্মী ও নির্মাণ শ্রমিকদের ওপর হামলা করে এবং বলাকা মোড়ে বিক্ষোভ দেখায়। রহিমা বেগম নামে স্থানীয় এক নারী বলেন, “এই এলাকা ঘণবসতিপূর্ণ। এখানে হাসপাতাল হলে এলাকাবাসীও সংক্রমিত হতে পারে। তাই দূরে কোথাও এই হাসপাতাল নির্মাণ করা হোক।” প্রায় দেড় ঘণ্টা বিক্ষোভের পর স্থানীয় কাউন্সিলর ও পুলিশ এসে ‘হাসপাতাল হবে না এবং নির্মাণ কাজ বন্ধ থাকবে’ এমন আশ্বাস দিলে এলাকাবাসী চলে যায়। তেজগাঁও শিল্পাঞ্চাল থানার ওসি আলী হোসেন বলেন, “করোনাভাইরাস প্রতিরোধে কোয়ারেন্টিন সেন্টারও হওয়ার কথা ছিল। প্রাথমিক অবকাঠামো শুরুও হয়েছিল। কিন্তু এই এলাকা অত্যন্ত ঘণবসতিপূর্ণ। তাই এলাকাবাসী সংক্রমিত হওয়ার ভয়ে বিক্ষোভ করেছে। “প্রাথমিকভাবে বুঝিয়ে তাদেরকে সরিয়ে দেওয়া হয়েছে। স্থানীয় কাউন্সিলর এসেছেন এবং স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর সঙ্গেও কথা বলা হয়েছে। দেখা যাক পরে কি হয়।” চলতি বছরের শুরুতে চীনের উহান শহরে প্রথম ধরা পড়া অতি ছোঁয়াছে নভেল করোনাভাইরাস ইতোমধ্যেই বিশ্বের বড় বড় শহরগুলোকে মৃত্যুপুরীতে পরিণত করেছে। প্রতিদিনই আক্রান্ত হচ্ছেন হাজার হাজার মানুষ। উহান শহরেই দ্রুত চিকিৎসা ব্যবস্থা সম্প্রসারণের অংশ হিসাবে মাত্র ছয় দিনে এক হাজার শয্যা বিশিষ্ট হাসপাতাল নির্মাণ করে বিশ্বে আলোড়ন সৃষ্টি করেছিল চীন। সেই ধারণা থেকেই ঢাকায় দ্রুত একটি হাসপাতাল তৈরির পরিকল্পনার কথা বলেছিল আকিজ। বিক্ষোভ-হামলার পর প্রকল্পের কাজ বন্ধ থাকবে কি না জানতে চাইলে আকিজ গ্রুপের ব্যবস্থাপনা পরিচালক বলেন, “আমরা এখনও কোনো ধরনের সিদ্ধান্ত নিইনি। তেমন কিছু হলে আপনাদের জানানো হবে।” গত ৮ মার্চ বাংলাদেশে প্রথমবারের মতো করোনাভাইরাস আক্রান্ত ব্যক্তির সন্ধান মেলে। মাত্র ২১ দিনের মাথায় বাংলাদেশে ৪৮ জনের মধ্যে সংক্রমণের বিষয়ে নিশ্চিত হয়েছে আইইডিসিআর। মৃত্যু হয়েছে পাঁচজনের।

কক্সবাজারে কথিত বন্দুকযুদ্ধে নিহত ৪

ঢাকা অফিস ॥ কক্সবাজারের টেকনাফ উপজেলায় বিজিবি ও পুলিশের সঙ্গে কথিত বন্দুকযুদ্ধের দুটি পৃথক ঘটনায় চারজন নিহত হয়েছেন। তাদের মধ্যে লেদা ছুরিখাল এলাকায় নিহত হন অজ্ঞাতপরিচয় তিনজন। আর তুলাতলি এলাকায় নিহত হয়েছেন মুসা আকবর (৩৬) নামে স্থানীয় এক ব্যক্তি। শনিবার ভোরে উপজেলার হ্নীলা ইউনিয়নের লেদা ছুরিখাল এলাকা ও হোয়াইক্যং ইউনিয়নের তুলাতলি এলাকায় তারা নিহত হন। বিজিবির টেকনাফ ২ ব্যাটালিয়নের অধিনায়ক লেফটেন্যান্ট কর্নেল মো. ফয়সল হাসান খান বলেন, “ভোরে লেদা ছুরিখাল এলাকা দিয়ে মিয়ানমার থেকে ইয়াবার বড় একটি চালান পাচার হয়ে আসার খবরে বিজিবির একটি দল অবস্থান নেয়। একপর্যায়ে মিয়ানমার দিক থেকে নৌকা দিয়ে চার-পাঁচজন লোক নাফ নদী পার হয়ে আসতে দেখে বিজিবির সদস্যরা থামার জন্য নির্দেশ দেন। বিজিবির সদস্যদের দেখতে পেয়ে সন্দেহজনক লোকজন দৌড়ে পালানোর চেষ্টা করে। “বিজিবির সদস্যরা ধাওয়া দিলে সন্দেহজনক লোকজন অতর্কিত গুলি ছুড়তে থাকে। বিজিবির সদস্যরাও আত্মরক্ষার্থে পাল্টা গুলি ছোড়ে। এক পর্যায়ে কেওড়া বনের ভেতর দিয়ে কয়েকজন পালিয়ে গেলেও গোলাগুলি থামার পর ঘটনাস্থলে তিনজনকে গুলিবিদ্ধ অবস্থায় পাওয়া যায়। তাদের কক্সবাজার সদর হাসপাতালে নেওয়া হলে চিকিৎসক তিনজনকে মৃত ঘোষণা করেন।” এই তিনজনই মিয়ানমারের রোহিঙ্গা নাগরিক বলে তিনি ধারণা করলেও পরিচয় নিশ্চিত হওয়া যায়নি বলে তিনি জানান। এছাড়া টেকনাফে মুসা আকবর (৩৬) নামে এক ব্যক্তি নিহত হয়েছেন। মুসা টেকনাফ উপজেলার হোয়াইক্যং ইউনিয়নের তুলাতলি এলাকার আবুল বশরের ছেলে। টেকনাফ থানার পরিদর্শক প্রদীপ কুমার দাশ বলেন, “মুসার বিরুদ্ধে মাদক ব্যবসাসহ নানা অভিযোগে আটটির বেশি মামলা রয়েছে। ভোরে তুলাতলি এলাকায় মাদক লেনদেনের জন্য কতিপয় লোকজন অবস্থান করছে বলে খবর পেয়ে পুলিশের একটি দল অভিযান চালায়। “পুলিশ সদস্যদের লক্ষ করে মাদক ব্যবসায়ীরা গুলি ছুড়তে থাকে। পুলিশও আত্মরক্ষার্থে পাল্টা গুলি ছোড়ে। একপর্যায়ে গোলাগুলি থেমে গেলে ঘটনাস্থলে একজনকে গুলিবিদ্ধ অবস্থায় পাওয়া যায়। কক্সবাজার সদর হাসপাতালে নেওয়া হলে জরুরি বিভাগের চিকিৎসক মৃত ঘোষণা করেন। ”

 

গাংনী পৌর মেয়রের উদ্যোগে কর্মহীন মানুষের মাঝে খাদ্য সামগ্রী বিতরণ

গাংনী প্রতিনিধি ॥ মেহেরপুরের গাংনী পৌরসভার মেয়র আশরাফুল ইসলামের ব্যক্তিগত উদ্যোগে করোনাভাইরাস সংক্রমণের কারণে লকডাউন হওয়া কর্মহীন দরিদ্রদের মাঝে খাদ্য সামগ্রী বিতরণ করা হয়েছে। খাদ্য সামগ্রীর মধ্যে রয়েছে চাউল,ডাল ও চিনি। গতকাল শনিবার সন্ধ্যা ৬টার দিকে পৌর এলাকার বিভিন্ন গ্রামে তিনি খাদ্য সামগ্রী বিতরণ করেন।

মেহেরপুরে  জনসচেতনতায় জেলা প্রশাসন ও সেনাবাহিনীর অভিযান

মেহেরপুর প্রতিনিধি ॥ মেহেরপুরে করোনা ভাইরাস সংক্রমণ এড়াতে সামাজিক দূরত্ব বজায় রাখা নিশ্চিত করতে জনসচেতনতামূলক প্রচার ও অভিযান পরিচালনা করা হয়েছে। সেনাবাহিনীর একটিদল ও মেহেরপুর জেলা প্রশাসন যৌথ অভিযান ও প্রচার মূলক কার্যক্রম পরিচালনা করে। পাশাপাশি  সেনাবাহিনীর উদ্যোগে পথচারীদের সাবান ও সড়কে জীবাণুনাশক ¯েপ্র করা হয়। গতকাল শনিবার দুপুরে মেহেরপুর জেলার বিভিন্ন এলাকায় এ কার্যক্রম পরিচালনা করা হয়। কার্যক্রমে নেতৃত্ব প্রদান করেন মেহেরপুর জেলা প্রশাসক আতাউল গনি। এসময় উপস্থিত ছিলেন জেলা পুলিশ সুপার এমএম মোরাদ আলী, জেলা সিভিল সার্জন ডা. নাসির উদ্দীন, মেহেরপুর সদর উপজেলা নির্বাহী অফিসার মাসুদুল আলম, সদর থানার ওসি শাহ দারা খানসহ সেনাবাহিনী ও  জেলা গোয়েন্দা পুলিশের সদস্যরা।

দৌলতপুর সীমান্তের ওপার ভারত ভূখন্ডে দু’দল মাদক চোরাকারবারীদের মধ্যে সংঘর্ষ ও গুলি

দৌলতপুর প্রতিনিধি ॥ কুষ্টিয়ার দৌলতপুর সীমান্তের ওপার ভারত ভূখন্ডে মাদক ছিনতাইকে কেন্দ্র করে দু’দল মাদক চোরাকারবারীর মধ্যে সংঘর্ষ ও গুলি বিনিময়ের ঘটনা ঘটেছে। এ ঘটনায় হতাহত হওয়ার খবর পাওয়া না গেলেও সীমান্ত এলাকায় চাপা উত্তেজনা বিরাজ করছে। স্থানীয় সূত্রে জানাগেছে, শুক্রবার রাত ৯টার দিকে উপজেলার প্রাগপুর ইউনিয়নের সীমান্ত সংলগ্ন পাকুড়িয়া গ্রামের লিটন ও সোহরাবের নেতৃত্বে ১০-১২জন মাদক পাচারকারী ভারত সীমান্ত দিয়ে ফেনসিডিল পাচার করছিল। এসময় পূর্ব থেকে ওৎ পেতে থাকা জামালপুর গ্রামের সুজন, শুকুর, কৌশিক, রিংকু ও বাবুসহ ১০-১২জন সশস্ত্র মাদক ছিনতাইকারী পাকুড়িয়া শকুনতলা বাজার এলাকার মাথাভাঙ্গা নদীর ওপার প্রায় ৩০০গজ ভারত ভূখন্ডে ১৫৩/১-এস সীমান্ত পিলার সংলগ্ন মাঠে মাদক পাচারকারীদের ওপর হামলা চালালে উভয়ের মধ্যে সংঘর্ষ বাঁধে। মাদক পাচারকারী ও মাদক ছিনতাইকারীদের মধ্যে সংঘর্ষচলাকালে উভয়ের মধ্যে ৪-৫ রাউন্ড গুলি বিনিময় হয় এবং মাদক ছিনতাইকারীরা প্রায় ৩০০ বোতল ফেনসিডিল ছিনিয়ে নেয় বলে সীমান্ত সংলগ্ন গ্রামবাসীরা জানিয়েছে। তবে কেউ হতাহত হয়েছে কিনা তা জানাতে পারেনি। এ ঘটনার পর সীমান্ত সংলগ্ন জামালপুর-পাকুড়িয়া গ্রামে চাপা উত্তেজনা বিরাজ করছে বলে নাম প্রকাশ না করার শর্তে অনেকে জানিয়েছে। ঘটনাটি ভারত ভূখন্ডে হওয়ায় এ বিষয়ে বিজিবি’র পক্ষ থেকে কোন মন্তব্য পাওয়া যায়নি।

দৌলতপুর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে পিপিই ও মাস্ক সরবরাহ

দৌলতপুর প্রতিনিধি ॥ কুষ্টিয়ার দৌলতপুর উপজেলা স্বাস্থ্যকমপ্লেক্সে পিপিই, মাস্ক ও হ্যান্ডগ্লোব সরবরাহ করা হয়েছে। গতকাল শনিবার দুপুর ১২টায় দৌলতপুর উপজেলা পরিষদ ও উপজেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে করোনা ভাইরাস প্রতিরোধমূলক ব্যবস্থা হিসেবে কর্তব্যরত চিকিৎসক ও নার্সদের ব্যবহারের জন্য এগুলো সরবরাহ করা হয়। দৌলতপুর উপজেলা চেয়ারম্যান এ্যাড. এজাজ আহমেদ মামুন ও দৌলতপুর উপজেলা নির্বাহী অফিসার শারমিন আক্তার ১০ সেট পিপিই, ১০টি এম-৯৫ মাস্ক, ৫০পিস হ্যান্ডগ্লোবস্ ও ১৫০ পিস সার্জিক্যাল মাস্ক তুলে দেন দৌলতপুর উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডা. অরবিন্দ কুমার পালের হাতে। এসময় দৌলতপুর প্রাণী সম্পদ কর্মকর্তা ডা. মো. আব্দুল মালেক, দৌলতপুর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের আবাসিক চিকিৎসক ও সাংবাদিক শরীফুল ইসলাম উপস্থিত ছিলেন। অপরদিকে উপজেলার রিফায়েতপুর ইউনিয়নের চেয়ারম্যান জামিরুল ইসলাম বাবু গতকাল সকাল থেকে দুপুর পর্যন্ত নিজ উদ্যোগে তার ইউনিয়নের বিভিন্ন সড়ক, বাজার ও গুরুত্বপূর্ন স্থানে জীবানু নাশক পানি ছিটিয়েছেন। এছাড়াও তিনি শতাধিক স্থানে নিয়মিত সাবান সরবরাহ করে হাত ধোয়ার ব্যবস্থা করেছেন।

গাংনীতে চিকিতসক নিখোঁজ

গাংনী প্রতিনিধি ॥ মেহেরপুরের গাংনী উপজেলা স্বাস্থ্যকমপ্লেক্সের সহকারী সার্জন ডা.আমিরুজ্জামান ওরফে মোহাম্মদ শামসুল আরেফিন নিখোঁজ হয়েছেন। গতকাল শনিবার দুপুরে উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডা. মোহাম্মদ রিয়াজুল আলম এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন। তিনি জানান গত বৃহস্পতিবার থেকে ডা.আমিরুজ্জামান ওরফে মোহাম্মদ শামসুল আরেফিনকে পাওয়া যাচ্ছেনা। তিনদিন যাবত সে অনুপস্থিত রয়েছে। ছুটির জন্য কোন আবেদনও করেনি। গাংনী হাসপাতাল বাজারের তার ভাড়া বাড়িতেও খোঁজ করে পাওয়া যায়নি। মোবাইল ফোনও বন্ধ রয়েছে। আমিরুজ্জামানের বাড়ি কুষ্টিয়ার খোকসা এলাকায়। তার অনুপস্থিতিতে এবং লোকবলের অভাবে হাসপাতালে চিকিৎসা সেবা বিঘিœত হচ্ছে। নিখোঁজ বিষয়টি উর্ধ্বতন কর্মকর্তাকে লিখিতভাবে জানানোর প্রস্তুতি চলছে। গাংনী থানার ওসি ওবাইদুর রহমান জানান ঘটনা শুনেছি। নিখোঁজ ডাক্তারের প্রতিষ্ঠান বা পরিবারের পক্ষ থেকে এখন জানায়নি। তবে তার পরিবারের কাছে জানতে কুষ্টিয়ার খোকসা এলাকায় খোঁজ নেয়া হচ্ছে।

করোনাভাইরাস

স্বপ্নে পাওয়া ওষুধের জেরে কারাগারে পিতা-পুত্র

ঢাকা অফিস ॥ ময়মনসিংহে করোনাভাইরাসের প্রতিষেধক তৈরি করে কারাগারে গেছে পিতা-পুত্র। শুক্রবার সন্ধ্যায় নান্দাইল উপজেলার খামারগাও গ্রামে ওই ছেলেকে ছয় মাসের বিনাশ্রম কারাদন্ড এবং তার বাবাকে ১০ হাজার টাকা জরিমানা অনাদায়ে ১৫ দিনের বিনাশ্রম কারাদন্ড দেয় ভ্রাম্যমাণ আদালত। গ্রেপ্তারকৃতরা হলেন জেলার নান্দাইল উপজেলার খামারগাও গ্রামের জসিম উদ্দিন ও তার ছেলে শাহীন মিয়া। গ্রেপ্তাকৃতদের উদ্ধৃত করে ভ্রাম্যমাণ আদালত পরিচালনাকারী উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা আব্দুর রহিম সুজন বলেন, ১৫ দিন আগে দিনের বেলা স্বপ্নযোগে ‘করোনাভাইরাসে চিকিৎসার ওষুধের ফর্মুলা পান ওই দুইজন। এরপর বিভিন্ন জায়গা থেকে ওষুধ তৈরির ওসব  ওষুধের কাঁচামাল সংগ্রহ করে ওষুধ তৈরি করেন তারা। “শুক্রবার স্থানীয় মসজিদে জুমার নামাজের সময় তাদের তৈরি ওষুধ সম্পর্কে মুসল্লিদের অবহিত করেন তারা। পরে স্থানীয় লোকজন করোনাভাইরাস প্রতিষেধকের খবর প্রশাসনকে জানায়।” এরপর ঘটনাস্থলে উপস্থিত হয়ে ভ্রাম্যমাণ আদালতে তাদের শাস্তি দেওয়া হয় বলেন ইউএনও।

পেশাদার ও বিনয়ী আচরণ করুন, পুলিশ সদস্যদের আইজিপির বার্তা

ঢাকা অফিস ॥ নভেল করোনাভাইরাসের বিরুদ্ধে লড়াইয়ে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে রাখতে মাঠ পর্যায়ের পুলিশ সদস্যদের অত্যন্ত সহনশীলতা, পেশাদারিত্ব ও বিনয়ের সঙ্গে কাজ করার আহ্বান জানিয়েছেন পুলিশের আইজি জাবেদ পাটোয়ারি। বৃহস্পতিবার থেকে বিভিন্ন মাধ্যমে প্রায় সোয়া দুই লাখ পুলিশের কাছে এই বার্তা পাঠানো  হচ্ছে বলে জানান পুলিশ সদর দপ্তরের এআইজি সোহেল রানা। হোম কোয়ারেন্টিনে থাকার বিষয়ে সরকারের নির্দেশনা পালন করতে গিয়ে দেশের বিভিন্ন স্থানে পুলিশ সদস্যরা সাধারণ পথচারি, রিকশাচালক, দিনমজুরসহ নানা পেশার মানুষকে লাঠিপেটা, কান ধরে উঠবস করানোর অভিযোগ আসার পর এই বার্তা পাঠানো হচ্ছে। বিভিন্ন সংবাদপত্র, অনলাইন, সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমসহ বিভিন্ন মাধ্যমে পুলিশ এসব তথ্য পেয়েছে বলে পুলিশ সদর দপ্তর থেকে জানান হয়। শনিবার সকালে সোহেল রানা জানান, মাঠে কাজ করা কিছু পুলিশ সদস্যের আচরণে নানা প্রশ্ন উঠেছে। এ ধরনের অভিযোগের বিষয়ে আইজির এই বার্তা। “কনস্টেবল থেকে শীর্ষ পর্যায়ের প্রতিটি পুলিশ সদস্য যেন এই বার্তা ব্যক্তিগতভাবে পান, সে ব্যবস্থা নেওয়া হয়েছে। এছাড়া আইজি প্রতিটি ইউনিট প্রধানের সাথে ফোনে এবং গ্রুপভিত্তিক ভিডিও কনফারেন্সে কথা বলেছেন।” আইজির এই বার্তা ফ্যাক্স, মোবাইল, মেইলসহ সবধরণের মাধ্যমে পাঠানো হয়েছে হচ্ছে বলেন তিনি। “বর্তমান পরিস্থিতিতে তিনি প্রতিটি সদস্যকে পেশাদরিত্ব, সহনশীল, বিনয়ী আচরণ করতে বলেছেন। একই সাথে ওষুধসহ নিত্য প্রয়োজনীয় অত্যাবশ্যক- জরুরি সেবার বিষয়ে জনগণ যেন ভোগান্তিতে না পড়ে সে ব্যাপারে সর্বাত্মক সহযোগিতা প্রদানের জন্য  নির্দেশ প্রদান করেছেন।” এর আগে বৃহস্পতিবার সোহেল রানা বলেছিলেন, জনসাধারণর সাথে যে সব পুলিশ সদস্য অসদাচরণ করেছেন তাদের বিষয়টি আমলে নেওয়া হয়েছে। তদন্ত করে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেওয়া হবে। “এ ধরণের আচরণ অত্যন্ত বেদনাদায়ক, যেটা আশা করা উচিত নয়। এ ধরণের করতে থাকলে জরুরি সেবায় নিয়েজিত পুলিশ সদস্যদের প্রতি সাধারণ মানুষ আস্তা হারিয়ে ফেলবে।” তিনি বলেন, বার্তা দেওয়ার পর পরিস্থিতি অনেক উন্নতি হচ্ছে। নতুন করে কোন ঘটনার খবর আসেনি। তবে কেউ কেউ মিথ্য তথ্য দিচ্ছে বলে অভিযোগ করেছেন পুলিশের এক দায়িত্বশীল কর্মকর্তা জানান। এই কর্মকর্তা বলেন, রাজবাড়ীর এক ঘটনায় পুলিশের এক কর্মকর্তা দায়িত্বপালন করতে গিয়ে এক ব্যক্তিকে জরুরি প্রয়োজন ছাড়া রাস্তায় চলাচলে নিষেধাজ্ঞার কথা স্মরণ করিয়ে দিলে ওই ব্যক্তি এক প্রভাবশালীর স্বজন বলে পরিচয় দেন, যা ঠিক ছিল না। কিশোরগঞ্জের এক প্রবাসী অভিযোগ করেছিলেন, কোয়ারেন্টিনে না থাকার শর্তে পুলিশ তার কাছে ঘুষ নিয়েছে, যার কোন সত্যতা পাওয়া যায়নি। পরে পুলিশ ওই প্রবাসীকে কোয়ারেন্টিনে পাঠিয়ে দেয়। সিলেটের এক বাজারের জনসমাগমে বাধা দিতে গিয়ে বৃহস্পতিবার পুলিশ বেশ বিপাকে পড়েছিল। জনতা পুলিশের উপর চড়াও হয়েছিল। এমন পরিস্থিতির মুখোমুখি প্রতিদিন হতে হচ্ছে জানিয়ে ওই কর্মকর্তা জানান, প্রতিটি বিষয় পুলিশ মনিটর করছে এবং তাৎক্ষনিক ব্যবস্থা নেওয়া হচ্ছে। ঝুঁকিপূর্ণ এই পরিস্থিতিতে মাঠে থাকা পুলিশ সদস্যদের সহযোগিতা করার জন্য দেশের প্রতিটি নাগরিককে এআইজি সোহেল রানা অনুরোধ জানিয়েছেন।

মুক্তিযুদ্ধ নিয়ে কথাকাটাকাটি, দুবাইয়ে পাকিস্তানিদের হাতে বাংলাদেশি খুন

ঢাকা অফিস ॥ দুবাইতে কর্মরত পাকিস্তানিদের হাতে মো. রফিকুর ইসলাম রফিক (৫৬) নামে বাংলাদেশি খুন হয়েছে বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে। তার গ্রামের বাড়ি টাঙ্গাইলের মির্জাপুর উপজেলার ৬ নম্বর আনাইতারা ইউনিয়নের আটিয়া মামুদপুর গ্রামে। পিতার নাম মো. সিদ্দিকুর রহমান। আজ শনিবার রফিকুল ইসলামের স্ত্রী জহুরা বেগম বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন। রফিকুল ইসলামের খালাতো ভাই ও আনাইতারা ইউনিয়ন যুবলীগের সভাপতি মো. সেকান্দার আলী জানান, তিনি দীর্ঘ দিন ধরে দুবাইতে একটি কোম্পানিতে ভালো বেতনে চাকরি করতেন। মাঝে মধ্যে দেশে আসতেন পরিবারের দেখাশোনার জন্য। তার একপুত্র জহিরুল ইসলাম সৌদি আরবে কর্মরত। গত কয়েক দিন আগে ঐ কোম্পানীতে পাকিস্তানি বেশ কয়েকজন শ্রমিকের সঙ্গে বাংলাদেশে ১৯৭১ সালের স্বাধীনতা যুদ্ধ নিয়ে রফিকুল ইসলামের কথাকাটি হয়। এই ঘটনাকে কেন্দ্র করে পাকিস্তানি শ্রমিকরা রফিকুলকে দেখে নেয়ার হুমকি দেয় বলে টেলিফোনে জানিয়েছিল। ঘটনার তিন চারদিন পর রফিকুল কোম্পানীতে কাজ করতে গেলে পাকিস্তানি ঐ শ্রমিকরা প্রতিশোধ হিসেবে রফিকুলকে নির্মম ভাবে খুন করে লাশ ঝুলিয়ে রাখে। ঘটনা জানাজানি হলে দুবাইতে বিভিন্ন কোম্পানীতে কর্মরত বাংলাদেশীদের মধ্যে আতংক ছড়িয়ে পরে। শুক্রবার দুবাই থেকে নাগরপুর উপজেলার মুকনা ইউনিয়নের কেদারপুর গ্রামের এক যুবক রফিকুলের বাড়িতে খুনের বিষয়টি টেলিফোনে জানায়। খবর শুনেই জ্ঞান হারিয়ে ফেলেন রফিকুলের বৃদ্ধা মা সুফিয়া বেগম ও স্ত্রী জহুরা বেগম। মির্জাপুর উপজেলা নির্বাহী অফিসার মো. আবদুল মালেক এবং মির্জাপুর থানার অফিসার ইনচার্জ মো. সায়েদুর রহমান বলেন, লাশ আনার ব্যাপারে সার্বিক সহযোগিতা করবে বাংলাদেশ ও দুবাই দুতাবাস। এ ব্যাপারে উপজেলা প্রশাসন থেকে রফিকুল ইসলামের পরিবারের সকল ধরনের সাহায্য সহযোগিতা করা হবে বলে এই দ্ইু কর্মকর্তা জানিয়েছেন। এ ব্যাপারে ৬ নম্বর আনাইতারা ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান ইঞ্জিনিয়ার মো. জাহাঙ্গীর আলমের সঙ্গে যোগাযোগ করা হলে তিনি বলেন, দুবাইতে পাকিস্তানীদের হাতে খুন হওয়া রফিকুলের লাশ দেশে আনার জন্য তার পরিবারকে সকল ধরনের সহযোগিতা করা হবে।

পদ্মাসেতুর ২৭তম স্প্যান স্থাপন, ৪০৫০ মিটার দৃশ্যমান

ঢাকা অফিস ॥ পদ্মাসেতুর ২৭তম স্প্যান বসানো হয়েছে। এতে করে সেতুটির ৪ হাজার ৫০ মিটার দৃশ্যমান হয়েছে। গতকাল শনিবার সকালা ৯টা ২০ মিনিটে ‘৫সি’ নম্বর স্প্যানটি ২৭ ও ২৮ নম্বর খুঁটির উপর বসিয়ে দেয়া হয়। এর মধ্য দিয়ে পদ্মা সেতু আরেক ধাপ এগিয়ে গেল। করোনা ভাইরাসের কারণে যখন সারা বিশ^ যখন লক ডাউন-স্থমিত। তখন পদ্মা সেতুতে ৩ হাজার ১৪০ টন ওজনের স্প্যানটি বসিয়ে দেয়া হয় খুঁটির ওপর। আর এর আগে পাঁচ নম্বর মডিউলের ‘সি’ স্প্যানটি শুক্রবার সকাল ৯টার দিকে মাওয়ার ইয়ার্ড থেকে নিয়ে রওনা হয়। ৩ হাজার ৬০০ টন ধারণক্ষমতার ‘তিয়ান ই’ ভাসমান ক্রেন সাড়ে ১০টার দিকে স্প্যান নিয়ে ২৮ নম্বর খুঁটির কাছে এ্যাংকর করে। শুক্রবার স্প্যানটি ভাসমান ক্রেন ‘তিয়ান-ই’ পিলার দুটির কাছে নিয়ে যাওয়া হয়। পদ্মা সেতুর উপ সহকারী প্রকৌশলী মো. মুরাদ কাদের বলেন, দেশী-বিদেশী প্রকৌশলীদের সহায়তায় সকাল ৮টা থেকে কাজ শুরু করে। নোঙর ক্রেনটি পজিশনিং করে ইঞ্চি ইঞ্চি মেপে স্প্যানটিকে তোলা হয় পিলারের উচ্চতায়। তারপর দুই পিলারের বেয়ারিংয়ের ওপর স্প্যানটিকে রাখা হয়। খুঁটিনাটি বিষয়গুলো আগে থেকেই বিশেষজ্ঞ প্যানেল দ্বারা পর্যবেক্ষণ করা হচ্ছিল। এভাবেই স্প্যানটি বসিয়ে দেয়ার পর পদ্মা সেতু আরও ১৫০মিটার বিস্তৃত হয়। এর আগে গত ১০ মার্চ ২৬ তম স্প্যানটি বসানো হয়। পদ্মা সেতুর নির্বাহী প্রকৌশলী (মূল সেতু) দেওয়ান মো. আব্দুল কাদের জানান, দেশে করোনা ভাইরাস আতঙ্ক থাকলেও পদ্মা সেতুর কাজ থেমে নেই। এপ্রিল মাসের মাঝামাঝি আরও দুটি স্প্যান বসানোর পরিকল্পনা রয়েছে। এ নিয়ে প্রস্তুতিও চলছে বলে জানান তিনি। আব্দুল কাদের বলেন, ২৭ নম্বর স্প্যানটি উঠানোর কথা ছিল আগামী ৩১ মার্চ। তবে আগেই সকল প্রস্তুতি সম্পন্ন হওয়ায় তিন দিন আগেই এটি উঠানো হল। পদ্মা সেতুর মূল ভিতও এখন সম্পন্ন। ৪২টি খুঁটির ৪১টি সম্পন্ন এখন। বাকী শুধু এখন ২৬ নম্বর খুঁিট । খুঁিটর সর্বশেষ প্রক্রিয়া ক্যাপ। এই খুঁটিওর ক্যাপের রড বাধাই হয়ে গেছে। এখন শুধু ঢালাই। কয়েক দিনের মধ্যেই এই ঢালাইটি সম্পন্ন হয়ে যাবে বলে এই প্রকৌশলী জানান। উল্লেখ্য গত ফেব্রুয়ারিতে তিনটি স্প্যান বসলেও মার্চে বসছে দু’টি স্প্যান। গত ১০ মার্চ এর পাশের ২৮ ও ২৯ নম্বর পিলারে ‘৫ডি’ নম্বরের ২৬তম স্প্যানটি বসানো হয়। এতে সেতুর ৩৯০০ মিটার দৃশ্যমান হয়। ২৭ তম স্প্যান স্থাপনের পর স্বপ্নের পদ্মাসেতু পুরোপুরি দৃশ্যমান হতে আর মাত্র বাকী ১৪টি স্প্যান। ৬.১৫ কিলোমিটার দীর্ঘ এই পদ্মাসেতুতে ৪১টি স্প্যান বসবে। এরই মধ্যে মাওয়ায় পৌছে গেছে ৩৯ স্প্যান। বাকী রয়েছে মাত্র ‘২ই’ ও ‘২এফ’ নম্বরের দু’টি স্প্যান। আব্দুল কাদের বলেন, চৈনিক নববর্ষের ছুটিতে চীনে গিয়ে যেসব কর্মীরা আটকে ছিলেন এদের অনেকে ফিরে এসে ‘সঙ্গনিরোধ’ সফলভাবে সম্পন্ন করার পর কাজে যোগ দিয়েছেন। এছাড়াও ওয়েল্ডিংয়ের কাজে ছয়টি রোবট ব্যবহার করা হচ্ছে। গত ৮ মার্চ থেকে ছয়টি রোবট সফলভাবে কাজ করছে। চায়না মেজর ব্রিজ ইঞ্জিনিয়ারিং কোম্পানির (এমবিইসি) নিজস্ব এই রোবটগুলো চীন থেকে নিয়ে আসে। অন্যদিকে পদ্মা সেতুর পাওয়া প্রান্তের ভায়াডাক্টের (সংযোগ সেতু) টি গার্ডার বসানো শুরু হয়েছে। গত তিনদিন ধরে এই টি গাডার্র স্থাপন হচ্ছে। এপর্যন্ত ৮টি টি গাডার্র স্থাপন হয়েছে বলে দায়িত্বশীল প্রকৌশলীরা জানিয়েছেন। এর আগে জাজিরা প্রান্তের সংয়োগ সড়কে টি গার্ডার স্থান করা হয়। এই প্রান্তে টি গার্ডার স্থাপন প্রায় শেষ পর্যায়ে।

ঘুম ভাঙার আগেই নিভে গেল ৩ প্রাণ

ঢাকা অফিস ॥ রাজধানীর মিরপুরে একটি বাড়িতে মশার কয়েল থেকে সৃষ্ট অগ্নিকান্ডে তিনজন নিহত হয়েছেন। শনিবার ভোররাতে এ অগ্নিকান্ডের ঘটনা ঘটে। শনিবার সকালে ফায়ার সার্ভিস অ্যান্ড সিভিল ডিফেন্সের নিয়ন্ত্রণ কক্ষের কর্তব্যরত কর্মকর্তা রাসেল শিকদার যুগান্তরকে এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন। নিহতরা হলেন কল্পনা (৩৫), জান্নাত (১৩) ও কাউসার (৮)। রাসেল শিকদার বলেন, মিরপুর ১১ নম্বর সেকশনের বি ব্লকের আরবান শিশু পার্কের পাশে বাউনিদাবাদ ১৬/১০ নম্বর বাসায় অগ্নিকান্ডের ঘটনা ঘটে। তিনি বলেন, নিহতরা সবাই ঘুমিয়ে ছিলেন। ভোরের দিকে মশার কয়েল থেকে আগুন লাগে। একপর্যায়ে বাসার ভেতরে তিনটি কক্ষে আগুন ধরে যায়। খবর পেয়ে ফায়ার সার্ভিসের দুটি ইউনিট গিয়ে সকাল সাড়ে ৬টার দিকে আগুন নেভায়। রাসেল শিকদার আরও বলেন, আগুন নেভানোর পর লাশ উদ্ধার করে আমরা পল্লবী থানায় হস্তান্তর করি।

টাঙ্গাইলে সিমেন্টের  ট্রাক  উল্টে ৬ জন নিহত

ঢাকা অফিস ॥ নিষেধ উপেক্ষা করে সিমেন্টবাহী একটি ট্রাক বস্তার ওপর যাত্রী তুলে ঢাকা থেকে রওনা হয়েছিল উত্তরবঙ্গের পথে; টাঙ্গাইলে সেই ট্রাক উল্টে বস্তার নিচে চাপা পড়ে প্রাণ গেছে ছয়জনের। এলেঙ্গা হাইওয়ে পুলিশ ফাঁড়ির সার্জেন্ট রাজীব বর্মণ জানান, শনিবার সকাল সাড়ে ৫টার দিকে টাঙ্গাইল সদর উপজেলার কান্দিলা এলাকায় ঢাকা-টাঙ্গাইল-বঙ্গবন্ধু সেতু মহাসড়কে এ দুর্ঘটনায় আরও ১০ জন আহত হয়েছেন। করোনাভাইরাসের মহামারী ঠেকাতে ২৬ মার্চ থেকে সারা দেশে চলছে ছুটি। সড়ক, নৌ ও আকাশ পথে সব ধরনের যোগাযোগ বন্ধ রেখে সবাইকে যার যার বাসায় থাকতে বলেছে সরকার। সড়কপথে যাত্রীবাহী পরিবহন বন্ধ থাকলেও জরুরি পণ্যের সরবরাহ ঠিক রাখতে ট্রাক-পিকআপের মত বাহনকে নিষেধাজ্ঞার বাইরে রাখা হয়েছে। এসব পণ্যবাহী বাহনে যাত্রী বহনে নিষেধ করা হলেও চালক ও যাত্রীরা তা মানছেন না। ছুটির শুরু থেকেই দলে দলে লোক ট্রাক ও পিকআপে চড়ে কাড়ির পথে ছুটছেন। টাঙ্গাইলের গোড়াই হাইওয়ে থানার এলেঙ্গা ফাঁড়ির পরিদর্শক কামাল হোসেন জানান, সিমেন্টবাহী ওই ট্রাকটি যাচ্ছিল বগুড়ার দিকে। ট্রাকে সিমেন্টের বস্তার ওপর ডজন দুই যাত্রী তুলেছিলেন চালক। “সোজা রাস্তা, যানবাহনের চাপ নাই, তারপরও যেভাবে রাস্তার মাঝখানে ট্রাক উল্টে গেছে, তাতে মনে হচ্ছে চালক হয়ত ঘুমিয়ে পড়েছিলেন, নয়ত গতি ছিল অনেক বেশি, চালক নিয়ন্ত্রণ রাখতে পারেননি।” দুর্ঘটনার পর ফায়ার সার্ভিস, হাইওয়ে পুলিশ ও জেলা পুলিশের সদস্যরা ঘটনাস্থলে উদ্ধার অভিযান শুরু করেন এবং বস্তা সরিয়ে তিনজনের লাশ উদ্ধার করেন। আহত অবস্থায় ১৩ জনকে টাঙ্গাইল সদর হাসপাতালে পাঠানোর পর সেখানে আরও দুজনকে ডাক্তর মৃত ঘোষণা করেন। পরে দুপুরে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মারা যান আরও একজন। পরিদর্শক কামাল বলেন, আহতদের মধ্যে আরও দুজনের অবস্থা আশঙ্কাজনক। হতাহতদের পরিচয় তাৎক্ষণিকভাবে জানা যায়নি।