কালুখালীর সালেহা সামাদ হাসপাতালে হাত ধোঁয়া কর্ণার উদ্বোধন

ফজলুল হক ॥ রাজবাড়ীর কালুখালীতে সালেহা সামাদ হাসপাতালে হাত ধোঁয়া কর্ণার উদ্বোধন করা হয়েছে।  সন্ধ্যায় হাসপাতালের প্রধান ফটকের পাশে এ হাত ধোঁয়া কর্ণার উদ্বোধন করেন থানা অফিসার ইনচার্জ মোহাম্মদ কামরুল হাসান। এসময় হাসপাতালের প্রতিষ্ঠাতা ডাঃ এসএম আবু হুসাইন এছাড়াও ডাঃ রাহাত খান নাবিল, হাসপাতালের নার্স ও স্টাফসহ অন্যান্যরা উপস্থিত ছিলেন। শেষে উপস্থিত সকলের উদ্দেশ্যে অফিসার ইনচার্জ বলেন, বিশ^ব্যাপী এই করোনা ভাইরাস মহামারী রূপ ধারণ করেছে। পৃথিবীর সকল দেশের বিজ্ঞানীরা এর প্রতিষেধক তৈরীর জন্য কাজ করছে। তবে এখন পর্যন্ত নিয়মিত সাবান/হ্যান্ডওয়াশ দিয়ে হাত ধোঁয়ায় ফলপ্রসু হচ্ছে। সর্বপরি তিনি বেসরকারী এই হাসপাতালের নিজ উদ্যোগে হাত ধোঁয়া কর্ণার স্থাপনের জন্য সাধুবাদ জানান।

দয়া করে ঘরের বাইরে যাবেন না – মুখ্য সচিব

ঢাকা অফিস ॥ বিশ্বজুড়ে মহামারীর আকার নেওয়া নভেল করোনাভাইরাস বাংলাদেশেও ছড়িয়ে পড়ায় এই রোগ থেকে বাঁচতে সবাইকে বাসায় থাকার আহ্বান জানিয়েছেন প্রধানমন্ত্রীর মুখ্য সচিব আহমদ কায়কাউস। মঙ্গলবার দুপুরে প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ে করোনাভাইরাস পরিস্থিতি নিয়ে সাংবাদিকদের ব্রিফ করে এই আহ্বান জানান তিনি। প্রধানমন্ত্রীর প্রেস সচিব ইহসানুল করিমও এ সময় উপস্থিত ছিলেন। বাংলাদেশ সরকার ঘোষিত ছুটিতে ঘোরাফেরা না করে সরকারি কর্মকর্তা-কর্মচারীদের বাসায় থাকার নির্দেশনা দেন আহমদ কায়কাউস। বেসরকারি সংস্থায় কর্মরতদের প্রতিও একই আহ্বান জানান তিনি। প্রধানমন্ত্রীর মুখ্য সচিব বলেন, “আগামী ২৬ মার্চের সরকারি ছুটি এবং ২৭, ২৮ মার্চের সাপ্তাহিক ছুটির সাথে ২৯ মার্চ হতে ২ এপ্রিল সাধারণ ছুটি ঘোষণা করা হয়েছে। ৩ ও ৪ এপ্রিল সাপ্তাহিক ছুটির দিন এই বন্ধের সাথে সংযুক্ত থাকবে। এর মানে হচ্ছে, ছুটির মধ্যে সকল কর্মকর্তা-কর্মচারী সবাই বাসায় থাকবেন।” এই ছুটি ভোগ বা উৎসব ভোগের জন্য দেওয়া হয়নি জানিয়ে তিনি বলেন, “এটি করোনাভাইরাস প্রতিরোধ করার জন্য দেওয়া হয়েছে। সকল কর্মকর্তা-কর্মচারী ছুটিকালীন কর্মস্থল ত্যাগ করবেন না। সবাই বাসায় থাকবেন।” সবাইকে উদ্দেশ করে তিনি বলেন, “আমরা আপনাদের অনুরোধ করছি, সবাই ঘরে থাকুন। দয়া করে ঘরের বাইরে যাবেন না। প্রয়োজনের বাইরে কোনোভাবেই যাবেন না। জরুরি প্রয়োজনে যদি যেতে হয় তাহলেও স্যানিটাইজেশন এবং সকল প্রকারের প্রতিরোধমূলক ব্যবস্থা গ্রহণ করেই যাবেন। অনুগ্রহ করে বিষয়টি পালন করার জন্য সবাইকে অনুরোধ করছি।” সরকারের তরফ থেকে ট্রেন, বাস, লঞ্চে যাত্রী বহন বন্ধ করা হয়েছে জানিয়ে আহমদ কায়কাউস বলেন, “অর্থাৎ আপনারা যে যেই জায়গায় আছেন সবাই আর স্থান ত্যাগ করবেন না। যারা গিয়েছেন তাদেরকে অনুরোধ করব তারা যদি ইতোমধ্যে গিয়ে থাকেন ঘরের বাইরে যাবেন না।” চলাচলের বিষয়ে তিনি বলেন, কাঁচাবাজার, খাবার ওষুধের দোকান, হাসপাতাল ও জরুরি সেবার যে বিষয়গুলো আছে সেগুলো এর আওতার বহির্ভূত থাকবে। তারা সব ধরনের প্রতিরোধমূলক ব্যবস্থা গ্রহণ করে তাদের সেবা দেবে। সব সরকারি দপ্তরে অনলাইনে কাজ করার পদ্ধতি সরকার প্রবর্তন করেছে জানিয়ে মুখ্য সচিব বলেন, “জরুরি কোন প্রয়োজন যদি হয় সেটি অনলাইনে করা যাবে। আপনাদের ছুটিকালীন সময়ে যদি কোনো রকমের অসুবিধা হয় সেটার জন্য সীমিত আকারে ব্যাংক চালু রাখার ঘোষণাও দেওয়া হয়েছে।” জনজীবন ব্যাহত না করার জন্য যা যা প্রয়োজন সেই পদক্ষেপ সরকার গ্রহণ করেছে মন্তব্য করে তিনি বলেন, “একই সঙ্গে আমাদের যারা নিম্নআয়ের মানুষ আছে তাদের যাতে কোনো অসুবিধা না হয় আমাদের ওএমএস চালু রয়েছে। সরকারের তরফ থেকে জেলা প্রশাসকদের কাছে নগদ টাকা ও খাদ্য বরাদ্দ দেওয়া হয়েছে। “যদি প্রয়োজন হয়, যখনই প্রয়োজন তখনই আমাদের প্রশাসনের তরফ থেকে এই সহায়তাগুলো দেওয়া হবে। অর্থাৎ আপনারা নিশ্চিন্ত থাকুন।” তিনি বলেন, “আপনাদের যখনই কোনো প্রয়োজন হবে আমাদের লোকজন সকল বাড়ি বাড়ি যাবে। আমাদের স্থানীয় জনপ্রতিনিধিরা রয়েছেন। তারাও যোগাযোগ রক্ষা করছেন। এই রকম যদি কোনো প্রয়োজন হয় তাহলে তারা সবাই পাশে দাঁড়াবে। “কিন্তু জনগণের কাছে আমাদের বিনীত অনুরোধ, আপনারা দয়া করে বাসার বাইরে যাবেন না। এটি আমাদের এখন জাতীয়ভাবে সবাই একসঙ্গে মোকাবেলার সময় এসেছে। আমরা সবাই একযোগে সেটি মোকাবেলা করব। আপনারা দয়া করে এই বিষয়ে ব্যত্যয় ঘটাবেন না।”

মিরপুর প্রেসক্লাবের উদ্যোগে মাস্ক বিতরণ

আমলা অফিস ॥ কুষ্টিয়ার মিরপুর প্রেসক্লাবের উদ্যোগে মাস্ক ও লিফলেট বিতরণ করা হয়েছে। গতকাল মঙ্গলবার দুপুরে ইজিবাইক ষ্ট্যান্ড ও ঈগল চত্বরে শ্রমজীবি মানুষের মধ্যে করোনাভাইস সম্পর্কে সচেতনতা সৃষ্টির লক্ষে মাস্ক ও লিফলেট বিতরণ হয়। এ সময়ে উপস্থিত ছিলেন প্রেসক্লাবের সভাপতি আলহাজ্ব মহাম্মদ আলী জোয়ার্দ্দার, সহ-সভাপতি কাঞ্চন কুমার হালদার, সাধারণ সম্পাদক রাশেদুজ্জামান রিমন, সাবেক সভাপতি আছাদুর রহমান বাবু, সাবেক আহ্বায়ক হুমায়ূন করিব হিমু, দপ্তর সম্পাদক ফিরোজ আহাম্মেদ প্রমুখ।

বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার হুশিয়ারি

দ্রুত ছড়িয়ে পড়ছে মহামারী করোনা

ঢাকা অফিস ॥ করোনাভাইরাস থেকে সৃষ্ট মহামারী আরও বেগবান হয়ে বিশ্বব্যাপী দ্রুত ছড়িয়ে পড়ছে বলে হুশিয়ার করেছে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা। এ ভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে কোভিড-১৯ রোগে এ পর্যন্ত তিন লাখের বেশি মানুষ এতে আক্রান্ত হয়েছে। মারা গেছেন সাড়ে ১৬ হাজারেরও বেশি মানুষ। খবর বিবিসির। প্রাণঘাতী এ আক্রান্ত হওয়া প্রথম ব্যক্তি থেকে শুরু করে এই সংখ্যা এক লাখে পৌঁছাতে সময় লেগেছিল ৬৭ দিন। পরের মাত্র ১১ দিনে আরও এক লাখ মানুষ আক্রান্ত হন এবং এর পরের এক লাখে পৌঁছাতে সময় লাগে মাত্র চার দিন। বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার প্রধান ড. টেড্রস অ্যাডহানম গেব্রেইয়েসুস আশাবাদ ব্যক্ত করে বলেন, এখনও এর গতিপথ পাল্টে দেয়া সম্ভব। কোভিড-১৯ শনাক্তের পরীক্ষা ও আক্রান্তের সংস্পর্শে আসা ব্যক্তিদের শনাক্ত করার কৌশলের ক্ষেত্রে কঠোর পদক্ষেপ নেয়ার আহ্বান জানান বিশ্ববাসীকে। তিনি বলেন, আমরা কী পদক্ষেপ নিই, সেটিই সবচেয়ে বেশি গুরুত্বপূর্ণ। প্রতিরক্ষামূলক ব্যবস্থা নিয়ে একটি ফুটবল ম্যাচ জেতা যায় না। প্রতিরক্ষার সঙ্গে সঙ্গে আক্রমণও করতে হবে। ফুটবল খেলোয়াড়দের নিয়ে ‘কিক আউট করোনাভাইরাস’ বা করোনাভাইরাসকে দূর কর- এমন একটি কর্মসূচির উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে ফিফার প্রেসিডেন্ট গিয়ান্নি ইনফানটিনোর সঙ্গে এক যৌথ সংবাদ সম্মেলনে তিনি এ কথা বলেন। ড. টেড্রস বলেন, মানুষকে ঘরের ভেতরে থাকতে বলা এবং শারীরিক দূরত্ব বজায় রাখার মতো পদক্ষেপ ভাইরাসের সংক্রমণের গতি কমিয়ে দিতে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখবে। কিন্তু এগুলোকে প্রতিরক্ষামূলক পদক্ষেপ হিসেবে উল্লেখ করে তিনি বলেন, এটি জিততে সাহায্য করবে না। করোনাভাইরাসের প্রাদুর্ভাব ঠেকাতে দেশগুলোকে আগ্রাসী ও সুনির্দিষ্ট পদক্ষেপ নেয়ার আহ্বান জানান বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার প্রধান ডা. টেড্রস। জয় পেতে হলে আমাদের আগ্রাসী আর সুনির্দিষ্ট কৌশল গ্রহণ করতে হবে- প্রতিটি সন্দেহভাজন ব্যক্তির পরীক্ষা করতে হবে, শনাক্ত হওয়া প্রত্যেক ব্যক্তিকে আইসোলেশন ও যতেœ রাখতে হবে এবং আর তাদের সংস্পর্শে আসা ব্যক্তিদের খুঁজে বের করে কোয়ারেন্টিনে রাখতে হবে। তিনি বিশ্বজুড়ে ব্যাপক হারে চিকিৎসা কর্মীদের আক্রান্ত হওয়া নিয়ে উদ্বেগ প্রকাশ করেছেন ড. টেড্রস। ধারণা করা হচ্ছে, ব্যক্তিগত সুরক্ষা সরঞ্জামাদি বা পিপিই পর্যাপ্ত পরিমাণে না থাকার কারণেই সংক্রমণের শিকার হয়েছেন তারা। তিনি সবাইকে সতর্ক করে দিয়ে বলেন, স্বাস্থ্যকর্মীরা তখনই তাদের দায়িত্ব যথাযথভাবে পালন করতে পারবেন, যখন তারা নিজেরা নিরাপদে থাকতে পারবেন। আমরা যদি অন্য সবকিছুই ঠিকঠাক করি; কিন্তু স্বাস্থ্যকর্মীদের সুরক্ষা নিশ্চিত না করি, তা হলে অনেক মানুষ মারা যাবে। কারণ যে স্বাস্থ্যকর্মীরা তাদের সেবা দিতেন তারাই অসুস্থ। তিনি বলেন, পিপিইকে অগ্রাধিকার দেয়া এবং এর গুরুত্ব নিশ্চিত করতে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা এর অংশীদারদের সঙ্গে মিলে কাজ করছে। একই সঙ্গে বিশ্বজুড়ে এর সংকটের বিষয়টিও তুলে ধরা হবে। বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার প্রধান আন্তর্জাতিক পর্যায়ে রাজনৈতিক প্রতিশ্র“তি ও সমন্বয়ের আহ্বান জানিয়ে তিনি বলেন, চলতি সপ্তাহে জি-২০ জোটভুক্ত নেতাদের তিনি আহ্বান জানাবেন, তারা যাতে সুরক্ষা সরঞ্জামাদি উৎপাদন বাড়ায় এবং সেগুলো রফতানির ওপর থেকে নিষেধাজ্ঞা উঠিয়ে নেয়। যুক্তরাজ্যের প্রধানমন্ত্রী বরিস জনসন সোমবার রাতে ঘোষণা দেন যে, সুনির্দিষ্ট কারণ ছাড়া কাউকে ঘরের বাইরে বের হতে দেয়া হবে না। এগুলোর মধ্যে রয়েছে- নিত্যপ্রয়োজনীয় জিনিসপত্র কেনাকাটা, প্রতিদিন এক ধরনের ব্যায়াম করা, যে কোনো চিকিৎসাসেবার জন্য এবং ঘরে থেকে কাজ করা সম্ভব না হলে কাজে যাওয়ার ক্ষেত্রে মানুষজন বের হতে পারবে। বিশ্বে সবচেয়ে ক্ষতিগ্রস্ত দেশ ইতালিতে কোভিড-১৯ এ আক্রান্ত হয়ে গত ২৪ ঘণ্টায় মারা গেছে ৬০২ জন। সব মিলিয়ে দেশটিতে মোট মৃতের সংখ্যা দাঁড়াল ৬০৭৭ জনে। কিন্তু গত বৃহস্পতিবারের পর এই প্রথম একদিনে কমসংখ্যক মানুষ মারা গেল। ধারণা করা হচ্ছে যে, সংক্রমণ ঠেকাতে সরকার যে পদক্ষেপ নিয়েছিল তা কাজ করতে শুরু করেছে। স্পেনে একদিনে মারা গেছে ৪৬২ জন, যা মিলিয়ে দেশটিতে মোট মৃতের সংখ্যা দাঁড়ায় ২১৮২ জনে। ফ্রান্সে নতুন করে মারা যাওয়া ১৮৬ জনসহ মোট মৃতের সংখ্যা ৮৬০ জন। সেখানে মঙ্গলবার থেকে লকডাউন কঠোর করার সিদ্ধান্ত নিয়েছে সরকার। শরীরচর্চার মতো কার্যক্রম কঠোরভাবে সীমিত করা হয়েছে এবং খোলাবাজার বন্ধ করা হয়েছে। এরই মধ্যে আন্তর্জাতিক অলিম্পিক কমিটির সদস্য ডিক পাউন্ড বলেছেন, করোনাভাইরাসের কারণে টোকিও অলিম্পিক এক বছর পেছানো হতে পারে। তবে এখনও আনুষ্ঠানিকভাবে এ নিয়ে কোনো ঘোষণা দেয়নি আইওসি।

কভিড-১৯ ভ্যাকসিন তৈরি করেছে জাপান

ঢাকা অফিস ॥ বিশ্বব্যাপী নভেল করোনা ভাইরাসের প্রাণহানি রুখতে প্রথমবারের মত ভ্যাকসিন তৈরি করেছে জাপান। ফুজি ফ্লিম হোল্ডিং কর্পোরেশনের ‘অ্যাভিজান’ করোনা ভাইরাস প্রতিরোধকারী ঔষধের পর নতুন এই ঘোষণা এল। ওসাকা বিশ্ববিদ্যালয় এবং জাপানের অন্যতম ঔষধ প্রস্তুতকারক কোম্পানি অ্যানজেসের যৌথ উদ্যেগে এ টিকা তৈরি হয়েছে। মঙ্গলবার অ্যানজেস ইনকর্পোরেশন এক বিবৃতিতে এ তথ্য জানিয়েছে। ১৯৯৯ সালে ওসাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে একদল গবেষকের এক যুগান্তকারী ঔষধ তৈরি করার পর সেখানেই প্রতিষ্ঠিত এ কোম্পানি জানিয়েছে,  নতুন করোনভাইরাসের বিরুদ্ধে ডিএনএ ভ্যাকসিন  তৈরির কাজ শেষ হয়েছে এবং তা শিগগিরই প্রাণীর ওপর পরীক্ষা করা শুরু হবে। কভিড-১৯ সৃষ্টিকারী ভাইরাসটি আরএনএ (রাইবো নিউক্লিক এসিড)। তবে কোম্পানিটি বলছে, ডিএনএ ভিত্তিক ভ্যাকসিন এই কভিডের ভাইরাসকে নিষ্ক্রিয় করে দেয়। এছাড়া এটি দ্রুত তৈরি করা সম্ভব যা, যা প্রোটিন ভিত্তিক ভ্যাকসিনের চেয়ে দ্রুত উৎপাদন করা সম্ভব। জাপানের প্রভাবশালী ঔষধ কোম্পানি তাকারা এই ভ্যাকসিনের বাজারজাতের দায়িত্ব নিয়েছে।

বিএমপিসি’র উদ্যোগে করোনা প্রতিরোধে সচেতনতামূলক লিফলেট বিতরণ

গতকাল দিনব্যাপী বাংলাদেশ মাদক প্রতিরোধ কমিটি (বিএমপিসি) কুষ্টিয়া জেলা শাখা, সদর উপজেলা, কাঞ্চনপুর, আসলামপুর, পোড়াদহ, বটতৈল ইউনিয়ন শাখাসহ বিভিন্ন ইউনিয়নে করোনা ভাইরাস সংক্রমণ রোধে করণীয় শীর্ষক লিফলেট বিতরণ ও জীবাণুনাশক ¯েপ্র করা হয়। কুষ্টিয়া পৌর বাজার ও এনএস রোডে জেলা শাখার সভাপতি হাসিবুর রহমান রিজু নেতৃবৃন্দের সাথে নিয়ে করোনা ভাইরাস সংক্রমণ রোধে করণীয় শীর্ষক লিফলেট জনসাধারণের কাছে পৌঁছে দেন। এছাড়াও বিভিন্ন অফিসে জীবাণুনাশক ¯েপ্র করেন। এসময় উপস্থিত ছিলেন বিএমপিসি’র সহ-সভাপতি তোফাজ্জেল হোসেনম সাংগঠনিক সম্পাদক শাহারিয়া ইমন রুবেল, প্রকৌশলী মাহমুদ আল হাফিজ অভি, প্রচার সম্পাদক আলামিন খান রাব্বী, সহ-প্রচার সম্পাদক রজব। অপরদিকে জগতি রেলবাজার ১৯নং ওয়ার্ডে জনসচেতন করার জন্য বিএমপিসি কুষ্টিয়া জেলা শাখার সাধারণ সম্পাদক এম সোহাগ হাসানের নেতৃত্বে লিফলেট বিতরণ করা হয়। এসময় উপস্থিত ছিলেন বিএমপিসি জেলার সহ-সভাপতি এমদাদুল হক ও ১৯নং ওয়ার্ড সদস্যবৃন্দ। কুষ্টিয়া সদর উপজেলা মাদক প্রতিরোধ কমিটির সভাপতি নজরুল ইসলাম প্রধানের নেতৃত্বে সদর উপজেলার বিভিন্ন এলাকায় করোনা প্রতিরোধ শীর্ষক লিফলেট বিতরণ করা হয়। বাংলাদেশ মাদক প্রতিরোধ কমিটি কাঞ্চনপুর ইউনিয়ন শাখার সভাপতি খোরশেদ আলম কাঞ্চনপুর বাজারসহ বিভিন্ন বাজার ও মোড়ে করোনা ভাইরাস কি সচেতন করার লক্ষে লিফলেট বিতরণ করেন। এছাড়াও করোনা ভাইরাস মোকাবেলায় মিরপুর উপজেলার  পোড়াদহ ইউনিয়নের সভাপতি ডাঃ এম এ করিম এর নেতৃত্বে স্বাস্থ্য সচেতনমূলক লিফলেট বার্তা জনগণের মাঝে বিতরণ করেন। এসময় বিএমপিসি সভাপতি হাসিবুর রহমান রিজু করোনা ভাইরাস নিয়ে আতঙ্কিত না হয়ে সকলকে সচেতন হওয়ার অনুরোধ জানান। সংবাদ বিজ্ঞপ্তি

মিরপুরে জেলা পরিষদের উদ্যোগে মাস্ক বিতরণ

আমলা অফিস ॥ কুষ্টিয়ার মিরপুরে জেলা পরিষদের উদ্যোগে মাস্ক ও লিফলেট বিতরণ করা হয়েছে। গতকাল মঙ্গলবার দুপুরে উপজেলা পরিষদের সামনে, ডাকবাংলো মোড় ও মিরপুর বাজারের বিভিন্ন স্থানে শ্রমজীবি মানুষের মধ্যে করোনাভাইস সম্পর্কে সচেতনতা সৃষ্টির লক্ষে মাস্ক ও লিফলেট বিতরণ হয়। জেলা পরিষদের সদস্য আলহাজ্ব মহাম্মদ আলী জোয়ার্দ্দার এ মাস্ক ও লিফলেট বিতরণ করেন। এ সময়ে উপস্থিত ছিলেন ছাতিয়ান ইউনিয়ন পরিষদের সদস্য মাহাতাব উদ্দিন, শাহাবুল ইসলাম প্রমুখ।

নিজের জীবন বাঁচান, ভিড় জমাবেন না – রিজভী

ঢাকা অফিস ॥ খালেদা জিয়ার মুক্তির সিদ্ধান্তের খবর পেয়ে বিএসএমএমইউতে বিএনপি নেতা-কর্মীরা জড়ো হওয়ায় নভেল করোনাভাইরাসের সংক্রমণ এড়াতে ভিড় না করার অনুরোধ জানিয়েছেন রুহুল কবির রিজভী। দুর্নীতির মামলায় দন্ড নিয়ে দুই বছর ধরে কারাবন্দি খালেদা জিয়াকে করোনাভাইরাস মহামারীর মধ্যে আকস্মিকভাবেই মঙ্গলবার মুক্তি দেওয়ার সিদ্ধান্ত জানায় সরকার। এই খবর শুনে বিএনপির জ্যেষ্ঠ যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভীসহ প্রায় অর্ধমত নেতা-কর্মী জড়ো হন বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয় (বিএসএমএমইউ) হাসপাতালে, যেখানে চিকিৎসার জন্য এক বছরের বেশি সময় ধরে ধরে রয়েছেন তাদের নেত্রী। অর্ধ শতাধিক সাংবাদিকও উপস্থিত হন সেখানে। নভেল করোনাভাইরাসের ব্যাপক সংক্রমণ এড়াতে জনসমাগম এড়ানোর নির্দেশনা রয়েছে। এজন্য দেশ যখন ‘লকডাউন’র দিকে যাচ্ছে, তখন হাসপাতাল প্রাঙ্গণে  ভিড় দেখে বিএসএমএমইউ কর্তৃপক্ষ ভিড় না করার অনুরোধ জানিয়ে মাইকিং শুরু করে। সবাইকে মূল ফটকের বাইরে যেতে অনুরোধ করা হয়। এর পরিপ্রেক্ষিতে রিজভীও নেতা-কর্মীদের উদ্দেশে বলেন, “আপনার নিজেদের স্বাস্থ্যের প্রতি নজর দিন। “নিজের জীবন বাঁচানোর দিক দেখতে হবে। এখানে অহেতুক ভিড় করবেন না। নেতাকর্মীদের প্রতি অনুরোধ, আপনারা আইসোলেশনে থাকুন, ভিড় করবেন না।” খালেদা জিয়াকে মুক্তি দিতে সরকারের সিদ্ধান্তের পর বিএসএমএমইউ প্রাঙ্গণে প্রথমে দেখা যায় ওই বিএমএর সাবেক সভাপতি ডা. এ জেড এম জাহিদ হোসেনকে। এরপর সেখানে উপস্থিত হন রুহুল কবির রিজভী, খায়রুল কবির খোকন, হাবিবউন নবী খান সোহেল, সাবেক সাংসদ আখতারুজ্জামান, মাসুদ আহমেদ তালুকদার প্রমুখ। খালেদা জিয়ার মুক্তির খবরে বিএসএমএমইউতে ভিড় জমায় বিএনপির নেতা-কর্মীরা।খালেদা জিয়ার মুক্তির খবরে বিএসএমএমইউতে ভিড় জমায় বিএনপির নেতা-কর্মীরা। খালেদা জিয়ার মুক্তির পর নেতাকর্মীদের ভিড় সামলানোর বিষয়ে রিজভী বলেন, “পৃথিবীব্যাপী করোনাভাইরাস যে মহামারী আকারে বিস্তার লাভ করেছে, সেখানে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থাসহ আমাদের চিকিৎসকরা যে সকল বিধি-বিধানের কথা বলছেন, সেসব বিধি-বিধান মেনেই উনাকে রাখা হবে। কারণ তিনি এমনিতেই অসুস্থ।” সরকারের সিদ্ধান্তে সাধুবাদ জানিয়ে রিজভী বলেন, “গণমাধ্যমে তার মুক্তির যতটুকু সংবাদ পেয়েছি, সেখানে আমরা অনেকটা আশ্বস্ত হয়েছি। শ্বাসরুদ্ধকর যে পরিস্থিতি, সেই পরিস্থিতিকে উত্তরণের একটা ধাপ তৈরি হয়েছে।” মুক্তির পর খালেদা জিয়া তার গুলশানের বাসা ‘ফিরোজা’য় উঠতে পারেন বলে বিএনপি নেতাদের সঙ্গে কথা বলে জানা গেছে। সেখানে দলের নেতা-কর্মীদের যাতায়াত আগেও খুবই সীমিত ছিল।

করোনা ভাইরাসের সংক্রমণ প্রতিরোধে নানা প্রচারণা চালাচ্ছে আলমডাঙ্গা থানা পুলিশ

আলমডাঙ্গা অফিস ॥ করোনা ভাইরাসের সংক্রমণ প্রতিরোধে নানা প্রচারণা চালাচ্ছে আলমডাঙ্গা থানা পুলিশ। গত কয়েকদিন মাইকিং ও লিফলেট বিতরণ করা হয়েছে। গতকাল  থানা  এলাকায় আলমডাঙ্গা থানার অফিসার ইনচার্জ আলমগীর কবীরের নির্দেশে  মোটরসাইকেল যোগে প্রচারণা চালানো হয়।  দুপুরে আলমডাঙ্গা থানার অফিসাররা তাদের হলুদ কমপ্লিট পোশাক পড়ে শহরসহ বিভিন্ন এলাকার মোড়ে মোড়ে প্রচারণা চালান। এসময় পুলিশ অফিসাররা নিত্য প্রয়োজনীয় দোকান, মেডিসিনের দোকানদারদের এক সাথে ২/৩ জন কাস্টমারের নিকট জিনিসপত্র, ওষুধ বিক্রয়  না করার পরামর্শ দেন। সাধারন মানুষকে অযথা বাইরে না আসার জন্য অনুরোধ করেন। এসময় পুলিশ অফিসাররা বলেন  জনসাধারনকে জনসমাগম এড়িয়ে চলার পরামর্শ দিয়ে বলেন, ‘নিয়মিত সাবান দিয়ে হাত পরিষ্কার রাখতে হবে এবং অপ্রয়োজনে শিশুদের ঘরের বাইরে আনা বিরত থাকতে হবে।’এ ছাড়া তিনি সকলকে শারীরিক কোনো সমস্যা দেখার সঙ্গে সঙ্গে চিকিৎসকের পরামর্শ নেয়ার আহ্বান জানান। এসময় করোনাভাইরাস প্রতিরোধে করোনা সম্পর্কে তাদের পরামর্শ জানতে বিভিন্ন বয়সী নারী-পুরুষ এগিয়ে এলে তিনি সবাইকে এ বিষয়ে আতঙ্কিত না হয়ে সচেতন হওয়ার পরামর্শ দেন। সন্ধ্যায় আলমডাঙ্গা থানার অফিসার ইনচার্জ আলমগীর কবীর, শহরের বিভিন্ন মোড়ে মোড়ে পরিদর্শন করেন। তিনি সাধারন মানুষকে বাইরে না আসার জন্য আহ্বান করেন।

দ্রুততম সময়ে করোনাভাইরাসের টিকা পেতে জিন গবেষণায় সিঙ্গাপুরের বিজ্ঞানীরা

ঢাকা অফিস ॥ সিঙ্গাপুরের বিজ্ঞানীরা বলেছেন, তারা জিনের পরিবর্তন ধরতে পারার এমন এক উপায় উদ্ভাবন করেছেন, যার মাধ্যমে প্রাণঘাতী করোনাভাইরাসের টিকার পরীক্ষা-নিরীক্ষার কাজ দ্রুততর হবে। দেশটির ডিউক-এনইউএস মেডিকেল স্কুলের বিজ্ঞানীরা জানিয়েছেন, তাদের কৌশলে সম্ভাব্য টিকাগুলোর কার্যকারিতা মাত্র কয়েকদিনের মধ্যেই নিশ্চিত হওয়া যাবে। পরীক্ষা-নিরীক্ষায় স্কুলটির অংশীদার যুক্তরাষ্ট্রভিত্তিক জৈবপ্রকৌশল প্রতিষ্ঠান আর্কটারাস থেরাপেটিকসই সম্ভাব্য এ টিকা সরবরাহ করবে বলে জানিয়েছে বার্তা সংস্থা রয়টার্স। মানবদেহে সম্ভাব্য টিকার কার্যকারিতা পরীক্ষায় সাধারণত কয়েক মাস লেগে যায়। সে তুলনায় ডিউক-এনইউএস স্কুলের উপায়ে কম সময় লাগবে, দাবি বিজ্ঞানীদের।  “কোন কোন জিন সচল, কোনটি নয়, জিনগুলোর পরিবর্তনের উপায় জানতে পারবেন আপনি,” বলেছেন ডিউক-এনইউএস স্কুলের উদীয়মান সংক্রামক রোগ প্রকল্পের উপপরিচালক ওই এং ইয়ং। জিনের পরিবর্তন দ্রুত ধরতে পারলে তা মানবদেহে টিকার প্রতিক্রিয়ার ওপর নির্ভরশীলতা কমিয়ে এর কার্যকারিতা ও পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া বের করতে বিজ্ঞানীদের সাহায্য করবে, বলেছেন তিনি। এখন পর্যন্ত নভেল করোনাভাইরাসের টিকা কিংবা এর চিকিৎসার কার্যকর কোনো ওষুধ বের হয়নি। ডিসেম্বরের শেষদিকে চীনের উহান থেকে বিশ্বব্যাপী ছড়িয়ে পড়া এ ভাইরাসে আক্রান্তের সংখ্যা তিন লাখ ৭৭ হাজার ছাড়িয়ে গেছে। মৃতের সংখ্যা পেরিয়েছে ১৬ হাজার। কভিড-১৯ এ আক্রান্ত বেশিরভাগ রোগীকেই মূলত শুশ্রুষা দেওয়া হচ্ছে; গুরুতর রোগীদের শ্বাসপ্রশ্বাস ঠিক রাখতে দেয়া হচ্ছে ভেন্টিলেটর। বিশেষজ্ঞরা বলছেন, করোনাভাইরাসটির প্রতিষেধক পেতে পেতে এক বছর বা তার চেয়েও বেশি সময় লাগতে পারে। তবে ওই এং ইয়ং বলছেন, তারা  এক সপ্তাহের মধ্যে ইঁদুরের ওপর সম্ভাব্য টিকার পরীক্ষা শুরুর পরিকল্পনা করছেন; মানবদেহে এ পরীক্ষা হবে চলতি বছরের দ্বিতীয়ভাগে।

মিরপুরে বেশি দামে চাল বিক্রির অপরাধে ব্যবসায়ীকে জরিমানা

আমলা অফিস ॥ কুষ্টিয়ার মিরপুরে ভ্রাম্যমাণ আদালত অভিযান চালিয়ে  বেশি দামে চাল বিক্রির অপরাধে এক ব্যবসায়ীকে ১০ হাজার টাকা জরিমানা করেছে। গতকাল মঙ্গলবার দুপুরে উপজেলা সহকারী কমিশনার (ভূমি) রকিবুল হাসানের নেতৃত্বে ভ্রাম্যমাণ আদালত মিরপুর নতুন বাজারে অভিযান চালিয়ে ভোক্তা অধিকার সংরক্ষণ আইন ২০০৯ এর ৪০ ধারায় মেসার্স তৃপ্তি ট্রেডার্সের মালিক আশরাফুল ইসলামকে ১০ হাজার টাকা জরিমানা করেন। এ সময়ে উপস্থিত ছিলেন এসআই শামীম আহমেদ, এসআই মিরাজুল ইসলাম প্রমুখ। উল্লেখ্য ব্যবসায়ী আশরাফুল ইসলাম চাল মজুদ করে প্রতি বস্তায় ২শ’ থেকে ৩শ’ বেশি দরে বিক্রি করছিলো।

ভেড়ামারা সোনালী বিড়ি কারখানায় করোনা ভাইরাসের ঝুঁকি !

আল-মাহাদী ॥ কুষ্টিয়া ভেড়ামারা উপজেলার সাতবাড়ীয়া এলাকায় অবস্থিত সোনালী বিড়ি কারখানায় করোনা ভাইরাসের ঝুঁকি রয়েছে বলে দাবি করেছে এলাকাবাসী। করোনা ভাইরাস নিয়ে রাষ্ট্রের সকল নির্দেশনা উপেক্ষা করে সেখানে প্রায় চার শতাধিক শ্রমিক স্বাস্থ্য ঝুঁকি নিয়ে কাজ করছেন। ভেড়ামারা সাতবাড়ীয়া এলাকায় অবস্থিত সোনালী বিড়ি কারখানায় সরজমিনে গিয়ে দেখা গেছে, শ্রমিকেরা বিড়ি তৈরি করছেন কিন্তু কারও মুখে মাক্স নেই। তামাক স্বাভাবিকভাবেই শ^াসকষ্টের অন্যতম কারণ এবং সহজে কাশি ও শ^াসকষ্টে আক্রান্ত করে। সেখানে বার বার বিভিন্নভাবে সবাইকে সর্তক করা হচ্ছে, এসময়ে হাচি-কাশি ও শ^াসকষ্টের কারণ থেকে দূরে থাকতে। কিন্তু ভেড়ামারা সোনালী বিড়ি কারখানায় করোনা প্রতিরোধে কোন ব্যবস্থা নেওয়া হয়নি। সোনালী বিড়ি কারখানার ম্যানেজার অনুপ কুমার জানালেন, এখানে এখন কার্ডধারী সাড়ে তিনশত শ্রমিক কাজ করছেন। মৌখিকভাবে সবাইকে করোনা বিষয়ে সতর্ক থাকতে বলা হয়েছে। কারও মাক্স নেই, হাত ধোয়ার ব্যবস্থা নেই কেন জানতে চাইলে তিনি বলেন, হাত ধোয়ার ব্যবস্থা আছে, মাক্সও দেওয়া হবে। করোনা ভাইরাস ছড়ানোর ক্ষেত্রে এ কারখানার পবিবেশ ভয়াবহ উল্লেখ করলে তিনি জানান, বিষয়টি এখনও তাদের কেউ বলেনি। তিনি বলেন, ভেড়ামারা ও দৌলতপুরে তার কারখানা বাদেও আকিজ বিড়ি, মনমোহন বিড়ি, নাসির বিড়ি ও নুরুজ্জামান বিশ^াসের বিড়ির কারখানা চালু রয়েছে। সেগুলোও একই রকম পরিবেশে শ্রমিকরা কাজ করছেন। ভেড়ামারা উপজেলা নির্বাহী অফিসার সোহেল মারুফ এ বিষয়ে বলেন, বিড়ি কারখানা বন্ধের বিষয়ে এখন পর্যন্ত কোনো নির্দেশনা আসেনি। তবে করোনা ভাইরাস প্রতিরোধে এ বিষয়ে উর্দ্ধতন কর্তৃপক্ষের সঙ্গে আলোচনা করবেন বলে জানান তিনি।

 

খাদে পড়ে এক বৃদ্ধের মৃত্যু

হরিণাকুন্ডুতে চলছে অবৈধ বালু উত্তোলনের মহোৎসব

ঝিনাইদহ প্রতিনিধি ॥ ঝিনাইদহের হরিণাকুন্ডু উপজেলার নারায়নকান্দি গ্রামে বেশ কিছুদিন ধরে চলছে অবৈধভাবে বালু উত্তোলনের মহাউৎসব। বিলিন হচ্ছে শত শত বিঘা ধান, পান, ভুট্টা, বাশ ও ফসলী জমি, নষ্ঠ হচ্ছে রাস্তাঘাট আর ধুলাই দুষিত হচ্ছে গ্রামের পরিবেশ, বৃদ্ধরা হারাচ্ছে তাদের সেই পরিচিত মাঠ। এসব দেখেও অজানা কারনে প্রশাসন নিরব অসহায়। গত সোমবার বালু উত্তোলনের সেই গভীর গর্তের পাশদিয়ে হাটতে গিয়ে নারায়নকান্দি গ্রামের এক বৃদ্ধ আনছার আলী (৭০) পানিতে পড়ে মৃত্যুবরণ করেছেন। সরেজমিনে গিয়ে দেখা যায়, প্রায় ৫শত বিঘা ফসলী জমি এলোমেলো ভাবে ড্রেজার মেশিন দিয়ে কেটে গভীর গর্তকরে বালু উত্তোলন করা হচ্ছে। সেসব জমিতে আগে ধান পান বরজ, ভুট্টা, সীম, বাশবাগানসহ বিভিন্ন ফসল উৎপাদন হতো। এখনো তার কিছুটা নমুনা আছে। এভাবে চলতে থাকলে আগামী ৫বছরে আশপাশের যে পান বরজ এবং ধানক্ষেত আছে তা বালুর গর্ভে বিলিন হয়ে যাবে। এমনকি বসত বাড়ীও ধসে পড়তে পারে। স্থানীয় সূত্রে জানা যায় একটি প্রভাবশালী মহলের ইন্ধনে স্থানীয় এক সাবেক মেম্বর আক্তার আলী এবং হরিণাকুন্ডু লালন হোসেন লাল অবৈধভাবে প্রভাব খাটিয়ে বছরের পর বছর ধরে বালু উত্তোলন করে আসছে। মাঝে মাঝে প্রশাসনের চাপে বন্ধ করলেও আবার তাদের ম্যানেজ করে কয়েকদিন পরেই তা পুনরাই চালু করে থাকে।

এবিষয়ে হরিণাকুন্ডু উপজেলা নির্বাহী অফিসার সৈয়দা নাফিস সুলতানা জানান আমরা এখন করোনা ভাইরাস নিয়ে ব্যস্ত আছি। তবে বিষয়টি আমি জানি মাঝে মধ্যে ভ্রাম্যমান আদালত পরিচালনা করি, দায়িত্বশীল কাওকে পাইনা শুধু লেবার পাওয়া যায়, সেজন্য কোন জরিমানা বা মামলা দেওয়া সম্ভব হয়না। শুনেছি আক্তার এবং লালন নামে দুইজন ব্যক্তি এই কাজের সাথে জড়িত। আবার কিছু প্রভাবশালী মহলের অনুরোধেও অনেক আইন প্রয়োগ করা সম্ভব হয় না। পরবর্তিতে বিষয়টি আমি আবার দেখবো।

দৌলতপুরে করোনা মনিটরিং কমিটির জরুরী সভা

শরীফুল ইসলাম ॥ কুষ্টিয়ার দৌলতপুরে করোনা মনিটরিং কমিটির জরুরী সভা গতকাল মঙ্গলবার দুপুর ১২টায় উপজেলা নির্বাহী অফিসারের কার্যালয়ে অনুষ্ঠিত হয়। দৌলতপুর উপজেলা নির্বাহী অফিসার শারমিন আক্তারের সভাপতিত্বে করোনা মনিটরিং কমিটির জরুরী সভায় উপস্থিত ছিলেন, দৌলতপুর উপজেলা চেয়ারম্যান এ্যাড. এজাজ আহমেদ মামুন, দৌলতপুর সহকারী কমিশনার (ভূমি) মো. আজগর আলী, দৌলতপুর থানার ওসি এস এম আরিফুর রহমান, দৌলতপুর উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডাঃ অরবিন্দ পাল, দৌলতপুর প্রাণীসম্পদ কর্মকর্তা ডা. মো. আব্দুল মালেক, দৌলতপুর মাধ্যমিক শিক্ষা অফিসার সর্দার মো. আবু সালেক, দৌলতপুর মৎস্য অফিসার খন্দকার মো. সহিদুর রহমান, দৌলতপুর মহিলা বিষয়ক কর্মকর্তা ইশরত জাহান, সাংবাদিক শরীফুল ইসলামসহ উপজেলা পরিষদের বিভিন্ন দপ্তরের কর্মকর্তা ও করোনা মনিটরিং কমিটির সদস্যবৃন্দ। সভায় করোনা ভাইরাস সংক্রান্ত সচেতনতা সৃষ্টির জন্য  দৌলতপুরের ১৪টি ইউনিয়নের বিভিন্ন ওয়ার্ড ও পাড়া-মহল্লায় লিফলেট, মাইকিং যোগে ব্যাপক প্রচার প্রচারনা চালানোর বিষয়টি উল্লেখ করা হয়। একই সাথে প্রশাসনের পক্ষ থেকে বিদেশ ফেরত ২০৮ জনের বাড়ি চিহ্নিত করে তাদেরকে হোম কোয়ারেন্টিনে থাকার নির্দেশসহ তাদের বাড়িতে লাল নিশানা উড়ানো হয়েছে এবং বিদেশ ফেরতদের কড়া নজরদারির মধ্যে রাখা হয়েছে বলে সভায় জানানো হয়। এছাড়াও গণজমায়েত ও বিবাহসহ বিভিন্ন ধরনের অনুষ্ঠান নিষিদ্ধ করার কথা উল্লেখ করা হয় সভায়। সভায় আজ থেকে ঢাকা কোচসহ দুরপাল্লার যাত্রীবাহী পরিবহনের যাত্রীদের বিভিন্ন কাউন্টারে চেকিং ও তাদের তালিকা প্রস্তুত করে হোম কোয়ারেন্টিনে থাকার বিষয়ে সিদ্ধান্ত হয়। এছাড়াও প্রতি ইউনিয়নে দু’জন অফিসার সার্বক্ষনিক তদারকি করবে এবং করোনা ভাইরাস সংক্রান্ত যাবতীয় তথ্য সংগ্রহ ও প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করবে এমন সিদ্ধান্ত হয়। আর মাঠ পর্যায়ে কর্মরত কর্মকর্তাদের সার্বক্ষনিক তদারকি ও নির্দেশনা প্রদানসহ করোনা ভাইরাস সংক্রান্ত যাবতীয় পরামর্শ প্রদান করবেন দৌলতপুর উপজেলা নির্বাহী অফিসারের নেতৃত্বে দৌলতপুর উপজেলা করোনা মনিটরিং কমিটি।  পাশাপাশি আজ থেকে দৌলতপুরে সেনাবাহিনীর টহল পরিচালিত হওয়ার কথা জানানো হয়। আল্লারদর্গা নুরুজ্জামান বিশ^াস কলেজে সেনাবাহিনী অবস্থান করবে। সেখান থেকে দৌলতপুরের সর্বত্র টহল পরিচালিত হওয়ার বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন দৌলতপুর উপজেলা নির্বাহী অফিসার শারমিন আক্তার।

কুষ্টিয়া বাস-মিনিবাস মালিক গ্রপের উদ্যোগে পরিবহন শ্রমিকদের মাঝে মাস্ক বিতরণ

নিজ সংবাদ ॥ কুষ্টিয়া বাস-মিনিবাস মালিক গ্র“পের উদ্যোগে করোনা ভাইরাসের সচেতনতা সৃষ্টির লক্ষে পরিবহন শ্রমিকদের মাঝে মাস্ক বিতরণ করা হয়েছে। গতকাল দুপুরে বাস-মিনিবাস মালিক গ্র“পের  অফিসে গ্র“পের সভাপতি আসগর আলী পরিবহন শ্রমিকদের জন্য কয়েক শত মাস্ক কুষ্টিয়া মটর শ্রমিক ইউনিয়নের সাধারন সম্পাদক আফজাল হোসেনের হাতে তুলে দেন। এসময় কুষ্টিয়া বাস-মিনিবাস মালিক গ্র“পের সিনিয়র সহ-সভাপতি আকিল আহমেদ, সাধারন সম্পাদক এস.এম রেজাউল ইসলাম বাবলু, কুষ্টিয়া বাস-কোচ মিনিবাস মালিক সমিতির সাধারন সম্পাদক মকবুল হোসেন লাবলু, সাংগঠনিক সম্পাদক মাসুদুর রহমান, নির্বাহী সদস্য সাইফুল ইসলাম, যুগ্ম সম্পাদক এমদাদুল হক নান্টু, অর্থ সম্পাদক এস.এম রেজাউল করিম, পরিবহন মালিক কাজী রফিকুর রহমান রফিক ও ইমরান আলী। করোনা ভাইরাসে মানুষের মাঝে সচেতনতা সৃষ্টি এবং কুষ্টিয়া পরিবহন সেক্টরে এর প্রতিকারের ব্যবস্থা নিয়ে বেশ আগে থেকেই কুষ্টিয়া বাস-মিনিবাস মালিক গ্র“পের উদ্যোগে বিভিন্ন কার্যক্রম পরিচালিত হয়ে আসছে। গ্রুপের অফিস পরিস্কার পরিচ্ছন্ন, বাস ডিপো পরিস্কারের পাশাপাশি পরিবহন মালিক ও শ্রমিকদের মাঝে সচেতনতা সৃষ্টির উদ্যোগ নেয়া হয়েছে। গতকাল পরিবহন শ্রমিকদের মাঝে করোনা ভাইরাস রোধ ও সচেতন করার লক্ষে মাস্ক বিতরণ করা হয় যা প্রশংসনীয়। এসময় কুষ্টিয়া বাস-মিনিবাস মালিক গ্র“পের সভাপতি জেলা আওয়ামীলীগের সাধারন সম্পাদক আসগর আলী বলেন, কুষ্টিয়া পরিবহন সেক্টরের সাথে জড়িত মানুষদের সার্বিক সহযোগিতায় মালিক গ্র“প সব সময় নিবেদিত রয়েছে। সারা বিশ্বের ক্লান্তিকর মুহুর্তে গ্র“পের পক্ষ থেকে বিভিন্ন কর্মসুচী গ্রহন করা হয়েছে যা সকলের জন্য কল্যাণ বয়ে আনবে। তিনি বলেন, পরিবহন মালিকদের স্বার্থের সাথে জড়িত রয়েছে পরিবহন শ্রমিকেরা। তারা গায়ের ঘাম দিয়ে এই সেক্টরকে উন্নতির দিকে নিতে বিশেষ ভূমিকা রেখে যাচ্ছে। তাদের অবদান দেশ ও জাতির কল্যানে নিহিত রয়েছে। তিনি সকল পরিবহন মালিক ও পরিবহন শ্রমিকদের এই ক্লান্তিকর মুহুর্ত থেকে নিরাপদে এবং সুস্থ্য থাকার ব্যাপারে বিশেষ সতর্কতার আহবান জানান। এর আগে কুষ্টিয়া বাস-মিনিবাস মালিক গ্র“প, বাস-মিনিবাস কোচ মালিক সমিতি ও মটর শ্রমিক ইউনিয়নের নেতাদের উপস্থিতিতে এক যৌথসভা অনুষ্ঠিত হয়। আসগর আলীর সভাপতিত্বে সভায় তিন সংগঠনের নেতৃবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন। সভায় আন্তঃজেলা বাস চলাচল বন্ধ রাখার সিদ্ধান্ত গ্রহন করা হয়।

কুষ্টিয়ায় করোনা ভাইরাস সংক্রমণ রোধে জেলা প্রাণিসম্পদ অফিসের উদ্দ্যোগে ব্যক্তিগত প্রতিরক্ষামূলক সরঞ্জাম সিভিল সার্জন ও জেলা প্রশাসকের কাছে হস্তান্তর

নিয়ামুল হক ॥ কুষ্টিয়া জেলা প্রাণি সম্পদ অফিসের উদ্দ্যোগে মহামারী করোনা ভাইরাস সংক্রমণ রোধে ব্যক্তিগত প্রতিরক্ষামূলক সরঞ্জাম (পিপিই) সিভিল সার্জন ও জেলা প্রশাসকের কাছে হস্তান্তর করা হয়েছে। গতকাল মঙ্গলবার সকালে কুষ্টিয়া সিভিল সার্জন ডাঃ এইচ এম আনোয়ারুল ইসলাম’র পক্ষে মেডিকেল অফিসার ডাঃ মোঃ রাকিবুল হাসান, জেলা প্রাণিসম্পদ কর্মকর্তা ডাঃ সিদ্দীকুর রহমান’র নিকট হতে ৫০ পিচ (পিপিই) গ্রহণ করেন। পরে জেলা প্রশাসক আসলাম হোসেনের নিকট ৫০ পিচ (পিপিই) হস্তান্তর করা হয়। জেলা প্রাণিসম্পদ কর্মকর্তা ডাঃ সিদ্দিকুর রহমান জানান, মহামারী করোনা ভাইরাস সংক্রমণ রোধে চিকিৎসকদের ও দায়িক্তশীল কর্মকর্তাদের সুরক্ষার জন্য এ (পিপিই) সরবরাহ করা হয়েছে। এটি সংক্রমণ ও ছোঁয়াচে জীবানু রোধে সুরক্ষার সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ সরঞ্জাম ।

বিদেশ ফেরত প্রবাসীরা মানছেন না হোম কোয়ারেন্টাইন

কুষ্টিয়ায় কোয়ারেন্টাইনে থাকা নিশ্চিত করতে বাড়ি বাড়ি  যাচ্ছে  আনসার ও ভিডিপির সদস্যরা

নিজ সংবাদ ॥ করোনা ভাইরাস মোকাবেলায় বিদেশ ফেরত প্রবাসীদের কোয়ারেন্টাইন (সবার কাছ থেকে আলাদা) থাকতে পরামর্শ দেয়া হলেও তারা তা মানছেন না। তাই তাদের সম্পর্কে তথ্য সংগ্রহ করে কোয়ারেন্টাইনে থাকা নিশ্চিত করতে বাড়ি বাড়ি  যাচ্ছে  আনসার ও ভিডিপির সদস্যরা। একই সঙ্গে সচেতনতা সৃষ্টি করতে লিফলেট বিতরণ করছেন তারা। জেলা আনসার ভিডিপি কার্যালয় সূত্র জানায়, জেলা কমান্ড্যান্ট সোহেলুর রহমানের নেতৃত্বে কুষ্টিয়া জেলায় মাঠে নেমেছে আনসার ও ভিডিপির সদস্যরা। প্রতিটি ইউনিয়নের আনসার ও ভিডিপির দলনেতা ও দলনেত্রীরা বাড়ি বাড়ি গিয়ে বিদেশ ফেরত মানুষদের সর্ম্পকে খোঁজ নিচ্ছেন। তারা  হোম কোয়ারেন্টাইনে থাকা নিশ্চিত করতে কাজ করছেন।

জেলা কমান্ড্যান্ট সোহেলুর রহমান বলেন- কুষ্টিয়া জেলার বাসিন্দা যারা বিদেশ থেকে এসেছেন তাদের বাড়িতে গিয়ে তা মানার জন্য উৎসাহিত করা হচ্ছে। নিশ্চিতকরণে আনসার ও ভিডিপির সদস্যরা কাজ করছে। প্রত্যেক বাড়িতে একজন করে আনসার সদস্য বাড়ির সামনে সার্বক্ষনিক নজরদারি রাখছে। সহকারী জেলা কমান্ড্যান্ট  সোহাগ হোসেন বলেন- কুষ্টিয়া জেনারেল হাসপাতালের পরিবেশ স্বাভাবিক রেখে রোগীদের সুষ্ঠুভাবে চিকিৎসা  সেবা দেওয়ার জন্য ১২ জন সাধারণ আনসার সদস্য মোতায়েন করা হয়েছে। করোনা ভাইরাস সর্ম্পকে সচেতনতা সৃষ্টির লক্ষ্যে গ্রামাঞ্চলসহ সমগ্র  জেলায় ৩০ হাজার লিফলেট বিতরণ করা হয়েছে।

করোনাভাইরাস

ছুটিতে সরকারি চাকুরেদের থাকতে হবে কর্মস্থলে

ঢাকা অফিস ॥ নভেল করোনাভাইরাস মোকাবেলার জরুরি পরিস্থিতিতে ঘোষিত সাধারণ ছুটিতে সরকারি কর্মকর্তা-কর্মচারীদের অবশ্যই নিজ নিজ কর্মস্থলে অবস্থান করতে হবে। এছাড়া সর্বসাধারণকে এই সময়ে বাইরে যাওয়া বা ভ্রমণ করা থেকে বিরত থাকার আহ্বান জানানো হয়েছে। নভেল করোনাভাইরাসের ব্যাপক সংক্রমণ ঠেকাতে সোমবার পাঁচ দিন সাধারণ ছুটি ঘোষণা করে সরকার, ফলে ২৬ মার্চ থেকে ৪ এপ্রিল পর্যন্ত ছুটি থাকছে দেশের সব অফিস-আদালতে। ওই ছুটির বিষয়ে মঙ্গলবার মন্ত্রিপরিষদ বিভাগের এক নির্দেশনায় বলা হয়েছে, “সরকারি কর্মকর্তা-কর্মচারীরা এই ছুটি বা বন্ধকালীন অবশ্যই নিজ নিজ কর্মস্থলে অবস্থান করবেন।” মন্ত্রিপরিষদ বিভাগের একজন কর্মকর্তা বলেন, “টানা ছুটি পেয়ে সরকারি কর্মকর্তা-কর্মচারীসহ অনেকেই গ্রামের বাড়ি যেতে চাইছেন। তাই সরকারি কর্মকর্তাদের কর্মস্থল অর্থাৎ যার যে অঞ্চলে পোস্টিং সেখানেই অবস্থান করতে নির্দেশনা দেওয়া হল।”এই ছুটি স্বাস্থ্যসেবা, সংবাদপত্রসহ অন্যান্য জরুরি কার্যাবলীর ক্ষেত্রে এই নির্দেশনা প্রযোজ্য হবে না বলে নির্দেশনায় জানানো হয়।এতে আরও বলা হয়, “এই বন্ধ ঘোষণা করা হয়েছে জনগণকে ব্যাপকহারে পারস্পরিক মেলামেলা বা সংস্পর্শে এসে রোগ বিস্তার করা থেকে বিরত রাখার জন্য। সেজন্য সর্বসাধারণকে এই সময়ে বাইরে যাওয়া বা ভ্রমণ করা থেকে বিরত থাকতে আহ্বান জানানো হচ্ছে।”ওষুধ বা খাদ্য প্রস্তুত, ক্রয়-বিক্রয়সহ অন্যান্য শিল্প কারখানা, প্রতিষ্ঠান, বাজার, দোকানপাট নিজস্ব ব্যবস্থাপনায় চলবে বলে নির্দেশনায় উল্লেখ করা হয়। এতে আরও বলা হয়, গণপরিবহন ব্যতীত অন্যান্য জরুরি পরিবহন যেমন, ট্রাক, কার্গো, অ্যাম্বুলেন্স ও সংবাদপত্রবাহী গাড়ি ইত্যাদি যথারীতি চলবে।

করোনাভাইরাস

আক্রান্ত বেড়ে ৩৯, মৃত্যু ৪ জনের

ঢাকা অফিস ॥ বাংলাদেশে নতুন করে আরও ছয়জনের মধ্যে নভেল করোনাভাইরাসের সংক্রমণ ধরা পড়েছে; আরও একজনের মৃত্যুর তথ্য নিশ্চিত করেছে সরকারের রোগতত্ত্ব, রোগ নিয়ন্ত্রণ ও গবেষণা ইনস্টিটিউট- আইইডিসিআর। নতুন ছয়জনকে নিয়ে বাংলাদেশে মোট ৩৯ জনের মধ্যে এ ভাইরাসের সংক্রমণ ধরা পড়ল, যাদের মধ্যে মোট পাঁচজন ইতোমধ্যে সুস্থ হয়ে উঠেছেন। ইনস্টিটিউটের পরিচালক অধ্যাপক মীরজাদী সেব্রিনা ফ্লোরা মঙ্গলবার এক ভার্চুয়াল ব্রিফিংয়ে নভেল করোনাভাইরাস মহামারীর সর্বশেষ পরিস্থিতি তুলে ধরেন। তিনি বলেন, নতুন যে ছয়জনের মধ্যে সংক্রমণ ধরা পড়েছে, তাদের একজন হাসপাতালে মারা গেছেন। বাকি পাঁচজনের একজন সৌদি আরব থেকে ওমরা করে ফিরেছেন। আর চারজন সংক্রমিত হয়েছেন আগে আক্রান্তদের সংস্পর্শে এসে। “যিনি মারা গেছেন তার বয়স সত্তরের বেশি। তিনি একটি হাসপাতালে দীর্ঘদিন ধরে চিকিৎসাধীন ছিলেন।” নতুন ছয় জনের মধ্যে একজন কীভাবে সংক্রমিত হয়েছেন সে বিষয়ে এখনও বিস্তারিত জানা যায়নি বলে তথ্য দেন অধ্যাপক ফ্লোরা। তিনি বলেন, আইইডিসিআর বিভিন্ন হাসপাতালে যে নজরদারি চালাচ্ছে সেখান থেকে ওই ব্যক্তির তথ্য পান তারা। পরে পরীক্ষা করে তার সংক্রমণের বিষয়ে নিশ্চিত হওয়া যায়। সংবাদ সম্মেলনে জানানো হয়, এখন পর্যন্ত ৭১২ জনের নমুনা পরীক্ষা করেছে আইইডিসিআর। এর মধ্যে ৯২ জনের নমুনা পরীক্ষা হয়েছে গত ২৪ ঘণ্টায়। হাসপাতালে এখন আইসোলেশনে আছেন মোট ৪০ জন। আরও ৪৬ জন আছেন প্রাতিষ্ঠানিক কোয়ারেন্টিনে।

কুষ্টিয়ায় মোকামে হানা, জরিমানা

মিল গেটে তালিকায় দর এক, আর বিক্রি দর আরেক

নিজ সংবাদ ॥ কোরোনা ভাইরাসের সুযোগ নিয়ে জেলা প্রশাসন ও বাজার কর্মকর্তারা বারবার মিল মালিকদের সতর্ক করলেও অনেক অসাধু মিল মালিক নির্দেশনা মানছেন না। তারা নিম্নমানের চালও বেশি দামে বিক্রি করছেন। আবার উৎপাদন খরচ কম হলেও তারা বেশি দামে বিক্রি করছেন। যেখানে উন্নত জাতের সরু মিনিকেট চাল বিক্রির বিষয়ে মিল গেটে ৫০ টাকার বেশি নেয়া যাবে না মর্মে নির্দেশনা থাকলেও অন্য জাতের চাউল মিল মালিকরা এ সুযোগে ৫০ টাকা দরে বিক্রি করছে। কুষ্টিয়ার খাজানগর মোকামে অভিযান চালিয়ে এমন একাধিক মিল পাওয়া গেছে। গতকাল মঙ্গলবার সকাল থেকে দুপুর পর্যন্ত বেশ কিছু মিলে গিয়ে অভিযান চালানো হয়। দুটি  মিল গেটে তালিকায় ৪৬ টাকা লিখে রাখলেও চাল বিক্রি করছে ৫০ টাকায়। তাদের জরিমানা করে ভ্রাম্যমান আদালত।

কুষ্টিয়া জেলা খাদ্য কর্মকর্তা মনোয়ার হোসেন বলেন- চালের পর্যাপ্ত সরবরাহ ও মজুদ রয়েছে। তারপরও অনেক মিল মালিক বেশি দামে চাল বিক্রি করছে। তাদের জেলা প্রশাসন থেকে সতর্ক করে দেয়ার পরও অনেকে নির্দেশনা মানছেন না। তাদের ব্যাপারে অভিযান চালানো হচ্ছে। খাজানগর মোকামে সকাল থেকে কমপক্ষে ৭টি মিলে অভিযান চালানো হয়। দুটি মিল এর মধ্যে ব্যাপারী ও সুবর্ণা অটো রাইস মিলে গিয়ে দেখা যায় তালিকা টাঙ্গানো আছে প্রতি কেজি ৪৬ টাকা। তারা বিক্রি করছিল ৫০ টাকা। চালান ঘেঁটে দেখা যায় কেজিতে ৪ টাকা বেশি বিক্রি করে আসছে তারা।

এদিকে বেশি দামে চাল বিক্রির অভিযোগে সহকারি কমিশনার ও নির্বাহী ম্যাজিষ্ট্রেট আবু রাসেল দুটি মিলকে ১৭ হাজার টাকা জরিমানা করে সতর্ক করে দেয়। এ সময় জেলা খাদ্য কর্মকর্তা মনোয়ার হোসেন, উপজেলা খাদ্য নিয়ন্ত্রক শাহ নেওয়াজ উপস্থিত ছিলেন।

‘প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে দেখা করেছিলেন খালেদা জিয়ার ভাই-বোন’

ঢাকা অফিস ॥ পরিবারের আবেদনের প্রেক্ষিতে কারাবন্দি বিএনপির চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার দন্ডাদেশ ৬ মাসের জন্য স্থগিত করে সরকার তাকে মুক্তি দেয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছে বলে জানিয়েছেন আইনমন্ত্রী আনিসুল হক। মঙ্গলবার বিকাল সাড়ে ৩টায় গুলশানের নিজ বাসায় জরুরি সংবাদ সম্মেলনে তিনি এ কথা জানান। মন্ত্রী বলেন, মন্ত্রণালয়ের মাধ্যমে আমার কাছে একটা দরখাস্ত করেছিলেন, খালেদা জিয়াকে নির্বাহী আদেশে মুক্তি দেয়ার জন্য। সেখানে অবশ্য উনি বলেছিলেন লন্ডনে উন্নতর চিকিৎসার জন্য আবেদনটি করা হয়েছে। এরপরে খালেদা জিয়ার ভাই শামীম ইস্কান্দর, তার বোন সেলিমা ইসলাম এবং তার বোনের স্বামী রফিকুল ইসলাম প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে একই বিষয়ে সাক্ষাৎ করেছিলেন। এবং সেখানেও এই আবেদনের বিষয়ে কথা বলেছিলেন। প্রধানমন্ত্রীর কাছে বলেছিলেন যে, নির্বাহী আদেশে তাকে মুক্তি দেয়ার জন্য। এর পরিপ্রেক্ষিতে প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশে আইনি প্রক্রিয়ায় আমরা সিদ্ধান্ত নিয়েছি। তিনি বলেন, ফৌজদারি কার্যবিধির ৪০১ ধারায় উপধারা(১) খালেদা জিয়া যে সাজা সেটা ছয় মাসের জন্য স্থগিত রেখে তাকে ঢাকাস্থ নিজ বাসায় থেকে চিকিৎসা গ্রহণ করার শর্তে এবং ওই সময়ে তিনি দেশের বাইরে না যাওয়ার শর্তে মুক্তি দেয়ার জন্য আমি মতামত দিয়েছি। সেই মতামত এখন স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণানয়ে পৌঁছে গেছে। এক প্রশ্নের জবাবে আইনমন্ত্রী বলেন, কিছুক্ষণ আগে আমার মতামত স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ে পাঠিয়েছি এবং আমি আপনাদের এখানে উল্লেখ করেছি যে, প্রধানমন্ত্রী এ ব্যাপারে নির্দেশ দিয়েছেন এবং প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশ হচ্ছে- আইনি প্রক্রিয়ায় এই দুই শর্তসাপেক্ষে তার দণ্ডাদেশ স্থগিত রেখে তাকে (খালেদা জিয়া) মুক্তি দেয়ার জন্য। আরেক প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, একটা কথা পরিষ্কারভাবে বলতে চাই, এখানে বলা হচ্ছে না যে, তিনি হাসপাতালে গিয়ে চিকিৎসা নিতে পারবেন না। কিন্তু হাসপাতালে ভর্তির ব্যাপারে তার কন্ডিশনের ওপরে দেখা যাবে, সেই জন্যই কথাটা উল্লেখ করা হয়েছে যে, বাসায় থেকে তিনি চিকিৎসা গ্রহণ করবেন। খালেদা জিয়ার বয়স বিবেচনায় মানবিক কারণে সরকার সদয় হয়ে দন্ডাদেশ স্থগিত রাখার সিদ্ধান্ত গ্রহণ করেছে।