কুষ্টিয়ায় দু’দিনব্যাপী ‘সুশাসনের জন্য কৌশলগত যোগাযোগ’ বিষয়ক কর্মশালায় ডিসি আসলাম হোসেন 

কুমারখালীতে ২শত বিঘা জমির উপরে বিসিক শিল্প নগরী গড়ে তোলা হবে

নিজ সংবাদ ॥ জাতীয় গণমাধ্যম ইনস্টিটিউট এবং পি৪ডি আয়োজিত সুশাসনের জন্য কৌশলগত যোগাযোগ বিষয়ক দু’দিনব্যাপী কর্মশালার উদ্বোধন হয়েছে। গতকাল সোমবার সকাল ১০টায় কুষ্টিয়া সার্কিট হাউস হলরুমে কর্মশালার উদ্বোধন করেন জাতীয় গণমাধ্যম ইনস্টিটিউটের মহাপরিচালক শাহিন ইসলাম (এনডিসি)। জাতীয় গণমাধ্যম ইনস্টিটিউটের পরিচালক মঞ্জুরুল আলমের সভাপতিত্বে ৫টি পলিসি টুলস নিয়ে কর্মশালার সূচনা হয়। শুরুতে এপিএ ও জিআরএস নিয়ে বিস্তারিত আলোচনায় অংশ নেন জাতীয় গণমাধ্যম ইনস্টিটিউটের পরিচালক (প্রশাসন) মঞ্জুরুল আলম। জেলা প্রশাসক মো, আসলাম হোসেন  বার্ষিক কর্মসম্পাদন চুক্তি বিষয়ক আলোচনা করেন। তিনি বার্ষিক কর্মসম্পাদন চুক্তি কি? এতে মানুষ কিধরনের সুবিধাদি পাচ্ছে এর পরিবেক্ষনে সাংবাদিকদের করনীয় বিষয়ে দীর্ঘ আলোচনা করেন। জেলা প্রশাসক বলেন, মার্চ মাস অত্যন্ত বেদনাদায়ক মাস, এই মাসে দেশের স্বাধীকার যুদ্ধের সুত্রপাত হয়েছিল। তিনি বলেন, দেশ দারিদ্র বিমোচন,শিক্ষা উন্নয়নের মত গুরুত্বপূর্ণ ধারায় এগিয়ে চলেছে। নীতি, নৈতিকতা ও শুদ্ধাচারের চর্চা ছাড়া উন্নয়নের পথে এগিয়ে চলা সম্ভব নয়। তিনি বলেন, কুষ্টিয়ায় ২৯টি টার্গেট নিয়ে কাজ করা হচ্ছে এর মধ্যে বস্ত্র শিল্পকে বেশি প্রধান্য দেয়া হয়েছে। কুমারখালীতে বস্ত্র শিল্পের পুনরুদ্ধার ও বিকোশিত করার জন্য ২শত বিঘা জমির উপরে বিসিক শিল্প নগরী গড়ে তোলা হবে। কুমারখালীর বস্ত্র শিল্পের সাথে সম্পৃক্তারা তাদের অভিজ্ঞতাকে কাজে লাগিয়ে উপকৃত হবে।  জেলা প্রশাসক বলেন, জানার অধিকার সকলের রয়েছে। কুষ্টিয়ায় বার্ষিক পরিকল্পনা নিয়ে সাংবাদিকদের সাথে মত বিনিময় করলে এর উপকারিতা আসবে। সাধারন মানুষেরা তা জানতে পারবে। তিনি আরো বলেন,আপনারা সাংবাদিক, আপনারা আপনাদের মেধা দিয়ে দেশের কল্যানে কাজ করতে পারেন। জনমুখি ও উন্নয়ন মুখী প্রশাসন দেশের উন্ন য়নের গতিধারাকে পাল্টে দিতে পারে। তাই আসুন আমরা সকলে শুদ্ধাচারের মাধ্যমে দেশকে গড়ে তুলি। বাংলাদেশ সৃখি সমৃদ্ধ দেখতে চাইলে আমাদের সকলকেব দায়িত্বশীল ও দায়িত্ববোধকে জাগ্রত করতে হবে। তিনি বলেন, কুষ্টিয়ার সাংবাদিকদের দুদিনের এই প্রশিক্ষন অত্যন্ত গুরুত্ব বহন করে। সরকারের বিভিন্ন উন্নয়নমুখি কর্মকান্ডকে সাধারন মানুষের সামনে তুলে ধরে সরকারে ভাবমুতিকে সমুজ্জল করতে হবে। কর্মশালায় জাতীয় শুদ্ধাচার কৌশল বিষয়ে আলোচনায় অংশ নেন জাতীয় গণমাধ্যম ইনস্টিটিউট এর উপপরিচালক (প্রশাসন) সৈয়দ জাহিদুল ইসলাম। তথ্য অধিকার বিষয়ে আলোচনা করেন কুষ্টিয়ার জেলা সিনিয়র তথ্য কর্মকর্তা  তৌহিদুজ্জামান, এছাড়া কর্মশালায় সাংবাদিকদের বিভিন্ন প্রশ্নে জবাব দেন জাতীয় গণমাধ্যম ইনস্টিটিউট এর উপ-পরিচালক আবদুল গাফ্ফার। কোর্চ পরিচালক হিসেবে ছিলেন আইরিন সুলতানা। জিআরএস ও এপিএ কুষ্টিয়ায় দু’দিনব্যাপী ‘সুশাসনের জন্য কৌশলগত যোগাযোগ’ বিষয়ক কর্মশালার আজ দ্বিতীয় দিনে কয়েকটি কী নোট নিয়ে আলোচনা শেষে সনদ পত্র বিতরনীর মধ্য দিয়ে শেষ হবে। কুষ্টিয়ায় কর্মরত বিভিন্ন প্রিন্ট ও ইলেক্ট্রনিক মিডিয়ায় কর্মরত গণমাধ্যমকর্মী অংশগ্রহন করেন।

মোট ভোটার ১০ কোটি ৯৮ লাখ, নতুন ৬৯ লাখ ৭১ হাজার

ঢাকা অফিস ॥ প্রধান নির্বাচন কমিশনার (সিইসি) কে এম নুরুল হুদা বলেছেন, দেশে মোট ভোটার ১০ কোটি ৯৮ লাখ ১৯ হাজার ১১২। সোমবার রাজধানীর বঙ্গবন্ধু আন্তর্জাতিক সম্মেলন কেন্দ্রে ভোটার দিবস উপলক্ষে আয়োজিত এক আলোচনা সভায় তিনি একথা বলেন। তিনি বলেন, এর মধ্যে নারী ভোটার ৫ কোটি ৪৩ লাখ ৩৬ হাজার ২২২। পুরুষ ভোটার ৫ কোটি ৫৪ লাখ ৮২ হাজার ৫৩০। হিজড়া ভোটার ৩৬০ জন। এর মধ্যে নতুন ভোটার ৬৯ লাখ ৭১ হাজার ৪৭০। আলোচনা সভায় প্রধান অতিথি ছিলেন আইনমন্ত্রী আনিসুল হক। এছাড়া অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন সিইসি কে এম নুরুল হুদা, নির্বাচন কমিশনার মাহবুব তালুকদার, রফিকুল ইসলাম, বেগম কবিতা খানম ও ব্রিগেডিয়ার জেনারেল (অব.) শাহাদাত হোসেন চৌধুরী। নির্বাচন কমিশনের সিনিয়র সচিব মো. আলমগীরের সভাপতিত্বে আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়।

জিকের কতিপয় কর্মকর্তার সহযোগিতায়

কুমারখালিতে দিনে দুপুরে খালের জায়গার শতশত গাছ কেটে সাবাড় করছে প্রভাবশালীরা

নিজ সংবাদ ॥ গঙ্গা কপোতাক্ষ সেচ প্রকল্প (জিকে)’র কর্মকর্তাদের সহযোগিতায় কুষ্টিয়ার কুমারখালিতে পানি উন্নয়ন বোর্ডের (পাউবো) আওতাধীন খালপাড়ের সরকারি শতশত গাছ দিনে দুপুরে কেটে নেয়ার অভিযোগ উঠেছে।  স্থাণীয় প্রভাবশালী ব্যক্তিরা জিকের কতিপয় অসাধু কর্মকর্তাদের ম্যানেজ করে এসব গাছ কেটে বিক্রি করে দিচ্ছে। সরকারি এসব সম্পদ দিনে দুপুরে তছরুফ করা হলেও কেউ প্রতিবাদ করতে সাহস পাচ্ছেন না। বরং বিভিন্ন মহলকে ম্যানেজ করে গাছ কেটে নেয়া হচ্ছে। আর গাছ কাটার এ ঘটনা চলছে কুমারখালী উপজেলা নিয়ামত বাড়ি গ্রামে। স্থানীয় প্রভাবশালীদের সহযোগীতায় পাউবোর কয়েকজন কর্মকর্তারা গাছ কাটার সাথে জড়িত বলে স্থাণীয় একধিক সূত্র নিশ্চিত করেছে। এ জন্য লেনদেন হয়েছে অর্থ। অভিযোগের ব্যাপারে জানতে চাইলে কুষ্টিয়া পানি উন্নয়নবোর্ডের নির্বাহী প্রকৌশলী পিযুষ কৃষ্ণ কুন্ডু বলেন,‘সরকারি গাছ দরপত্র ছাড়া কাটার কোন বিধান নাই। বিষয়টি জানার পর থানায় মামলা করা হয়েছে। এঘটনার সাথে যারাই জড়িত থাকবে তাদের বিরুদ্ধে অবশ্যই ব্যবস্থা নেওয়া হবে।’

এলাকার কয়েকজন বাসিন্দা সূত্র জানায়, প্রায় ১৫ বছর আগে গবরা চাঁদপুর ইউনিয়নের নিয়ামত বাড়ি গ্রামের পাশে জিকে প্রকল্পের খালপাড়ে অন্ততঃ আধা কিলোমিটার এলাকায় কাঁঠাল, আমসহ বিভিন্ন প্রজাতির ওষুধি, বনজ ও ফলজ গাছ লাগানো হয়েছিল। গত শুক্রবার সকাল থেকে হঠাৎ করে ২০-৩০ জন শ্রমিক গাছ কাটতে থাকেন। চাঁদপুর গ্রামের প্রভাবশালী সহরাব উদ্দীনসহ কয়েকজন ব্যক্তি খালের পাড়ের গাছগুলো বিক্রি করে দেয়। তারা কুষ্টিয়া পাউবো কার্যালয়ের কর্মকর্তা উপসহকারি প্রকৌশলী পিয়াস চন্দ্র চৌধুরী ও  কার্যালয়ের কার্য সহকারী আবদুর রশীদের সাথে যোগসাজসে এসব গাছ বিক্রি করেন। এর বিনিময়ে তারা মোটা অঙ্কের নিয়েছেন বলেও অভিযোগ পাওয়া গেছে। এ ব্যাপারে সোহরাব উদ্দীনের বাড়িতে গিয়ে তাকে পাওয়া যায়নি। সাংবাদিক আসার খবরে সটকে পড়েন তিনি।

গতকাল সোমবার এ বিষয়ে এলাকায় খোঁজ নিয়ে জানা যায়, খালের পাড়ে গাছের শতাধিক গুঁড়ি পড়ে আছে। কাটা গাছ নসিমন করিমনে করে অন্যত্র নেওয়া হচ্ছে। কয়েকটি গাছ শ্রমিকেরা কুড়াল দিয়ে কাটছে। অন্তত পাঁচটি গাছ কাটতে দেখা গেল। তারমধ্যে একটি গাছের গায়ে লাল কালি দিয়ে ১২৬৭ লেখা দেখা পাওয়া যায়। তার মানে এর আগে ১২৬৬টি গাছ কাটা হয়েছে।

স্থানীয় এক নারী রাজিয়া খাতুন কাটা কাঁঠালগাছের খড়ি ও পাতা সংগ্রহ করছিলেন। তিনি জানান, ‘এখানে বড় বড় শত শত কাঁঠাল ও আমগাছ ছিল। লোকজন কেটে নিয়ে গেছে। পড়ে থাকা খড়ি ও পাতা জ¦ালানীর জন্য বাড়িতে নিচ্ছেন।’

গাছ কাটা প্রসঙ্গে সেখানে দাঁড়িয়ে থাকা এক ব্যক্তির সাথে কথা হয়। জমির উদ্দীন নামে ওই ব্যক্তি পেশায় কাঠ ব্যবসায়ী। তিনিও অন্তত দশজন শ্রমিক দিয়ে গাছ কাটছেন। জমির উদ্দীন বলেন, ‘সহরাবের কাছ থেকে তিনি ৪০টি গাছ ৫০ হাজার টাকা দিয়ে কিনেছেন। এভাবে রফিকুল ইসলামসহ আরও কয়েকজন কাঠ ব্যবসায়ী গাছ কিনেছে। তবে এ গাছের মূল্য আরো অনেক বেশি।

তিনি আরও বলেন,‘পাউবোর কর্মকর্তা পিয়াস চন্দ্র চৌধুরী ও আবদুর রশীদ ১৫ দিন আগে গাছগুলো লাল কালি দিয়ে চিহিৃত করে যায়। এরপর খালের জমির পাশে ব্যক্তিমালিকানা জমির মালিকদের মাধ্যমে গাছগুলো কাটতে বলে। এর বেশি কিছু আর জানা নাই।’

একজন কাঠ ব্যবসায়ী বলেন, পনের দিন ধরেই পাউবোর কর্মকর্তারা নিয়মিতভাবে এলাকায় আসছে। আজকে  (সোমবার) সকালেও এসেছিল। গাছ বিক্রি করার টাকা থেকে তারা ৬০ ভাগ টাকা নিয়ে যায়।

নাম প্রকাশ না করার শর্তে খালপাড়ের আরেক বাসিন্দা বলেন, তিন কিলোমিটার জুড়ে থাকা গাছের মধ্যে অন্তত ৪০ ভাগ গাছ কেটে সাবাড় করা হয়েছে। বাকি গাছগুলো কয়েকদিনের মধ্যে কাটা শেষ হয়ে যাবে। প্রতিটা গাছ গড়ে ১০ থেকে ১৫ হাজার টাকা করে দাম হবে। পাউবোর কর্মকর্তারা লাল কালি দিয়ে চিহিৃত করে দেওয়ায় কেউ কিছু বলার সাহস পায়নি। সবমিলিয়ে গাছগুলোর দাম প্রায় কোটি টাকা হবে।

পাউবো কর্মকর্তা পিয়াস চন্দ্র চৌধুরীর মোবাইল ফোনে একাধিকবার যোগাযোগ করা হলে তিনি ফোন ধরেননি। পানি উন্নয়ন বোর্ড সূত্র জানায়, সম্প্রতি নিয়ামতবাড়ি এলাকার খালটি খননের উদ্যোগ নেওয়া হয়। কাজও শুরু হয়েছে। তবে খালের পাড়ে থাকা গাছ কাটার কোন দরপত্র আহ্বান করা হয়নি।

কুষ্টিয়ার জেলা প্রশাসক মোঃ আসলাম হোসেন বলেন, সরকারি গাছ কাটার কোন বিধান নেই। টেন্ডার ছাড়াও গাছ কাটা আরও বড় অন্যায়। যারা জড়িত থাক তাদের খুঁজে বের করে মামলার দেয়ার জন্য জিকের কর্মকর্তাদের বলা হবে। কোন ছাড় দেয়া হবে। সরকারি কোন লোক জড়িত থাকলেও তার বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়ার জন্য প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেয়া হবে।

দলে ফিরলেন দু প্লেসি, নতুন মুখ লিন্ডে

ক্রীড়া প্রতিবেদক ॥ ঘরের মাঠে ইংল্যান্ডের পর অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে ওয়ানডে সিরিজেও আছেন বিশ্রামে। ২০১৯ বিশ্বকাপের পর ওয়ানডে খেলেননি ফাফ দু প্লেসি। ভারত সফর দিয়ে সাত মাস পর এই সংস্করণে ফিরছেন দক্ষিণ আফ্রিকার সাবেক অধিনায়ক। ভারতের বিপক্ষে তিন ম্যাচের ওয়ানডে সিরিজের জন্য ঘোষিত ১৫ সদস্যের দলে দু প্লেসির সঙ্গে ফিরেছেন ব্যাটসম্যান রাসি ফন ডার ডাসেন। প্রথমবারের মত ওয়ানডে দলে ডাক পেয়েছেন বাঁহাতি স্পিনার জর্জ লিন্ডে। একই দলের বিপক্ষে গত অক্টোবরে টেস্ট অভিষেক হয়েছিল লিন্ডের। জায়গা ধরে রেখেছেন তরুণ কাইল ভেরেইন। কুঁচকির চোটের কারণে ছিটকে পড়েছেন পেসার কাগিসো রাবাদা। সন্তান-সম্ভবা স্ত্রীর পাশে থাকতে ভারত সফরের দলে নেই লেগ স্পিনার তাবরাইজ শামসি। বাদ পড়েছেন ইংল্যান্ডের বিপক্ষে অভিষেক হওয়া ডানহাতি ব্যাটসম্যান ইয়ানেমান মালান। আগামী ১২ মার্চ ধর্মশালায় হবে ওয়ানডে সিরিজের প্রথম ম্যাচ। বাকি দুই ম্যাচ হবে ১৫ ও ১৮ মার্চ। দক্ষিণ আফ্রিকা ওয়ানডে দল: কুইন্টন ডি কক (অধিনায়ক), টেম্বা বাভুমা, রাসি ফন ডার ডাসেন, ফাফ দু প্লেসি, কাইল ভেরেইন, হাইনরিখ ক্লাসেন, ডেভিড মিলার, জন-জন স্মাটস, আন্দিলে ফেলুকওয়ায়ো, লুঙ্গি এনগিডি, লুথো সিপামলা, বিউরান হেনড্রিকস, আনরিক নরকিয়া, জর্জ লিন্ডে, কেশব মহারাজ।

 

আড়াই দিনে হেরে হোয়াইটওয়াশড ভারত

ক্রীড়া প্রতিবেদক ॥ ওয়েলিংটনের পর ক্রাইস্টচার্চেও পাত্তা পেল না ভারত। ব্যাট-বলের অসাধারণ পারফরম্যান্সে নিউ জিল্যান্ড পেল দারুণ জয়। আড়াই দিনে হেরে হোয়াইটওয়াশের তেতো স্বাদ পেল বিরাট কোহলির দল। সিরিজের শেষ টেস্ট নিউ জিল্যান্ড জিতেছে ৭ উইকেটে। সোমবার ম্যাচের তৃতীয় দিনে শেষ ইনিংসে কিউইদের লক্ষ্য ছিল ১৩২ রানের। দুই ওপেনারের ফিফটিতে সেটি তারা ছুঁয়ে ফেলে দ্বিতীয় সেশনেই। কেন উইলিয়ামসনের দল দুই ম্যাচের সিরিজ জিতল ২-০ ব্যবধানে। পাশাপাশি টেস্ট র‌্যাঙ্কিংয়ে উঠে গেল দুই নম্বরে। প্রথম টেস্ট তারা জিতেছিল ১০ উইকেটে। টি-টোয়েন্টি সিরিজে নিউ জিল্যান্ডকে হোয়াইটওয়াশ করে সফর শুরু করেছিল ভারত। ওয়ানডে ও টেস্টে সিরিজে সেই স্বাদ সফরকারীদের ফিরিয়ে দিল স্বাগতিকরা। বোলারদের নৈপুণ্যে প্রথম ইনিংসে ভারত পেয়েছিল ৭ রানের ছোট্ট লিড। কিন্তু ব্যাটসম্যানদের ব্যর্থতায় ম্যাচ হারল বড় ব্যবধানে। পুরো সিরিজেই ব্যাট হাতে ব্যর্থ ছিলেন অধিনায়ক কোহলি। হ্যাগলি ওভালে ৬ উইকেটে ৯০ রান নিয়ে তৃতীয় দিন শুরু করেছিল ভারত। এদিন তাদের ইনিংস টিকেছে কেবল ৪৭ মিনিট। শেষ ৪ উইকেটে যোগ করতে পারে তারা ৩৪ রান। আগের দিনের দুই অপরাজিত ব্যাটসম্যান হনুমা বিহারি ও রিশাব পান্ত ফেরেন প্রথম চার ওভারের মধ্যে। দুজনের কেউই যেতে পারেননি দুই অঙ্কে। বিহারির পর মোহাম্মদ শামিকে ফেরান টিম সাউদি। জাসপ্রিত বুমরাহর রান আউটে শেষ হয় সফরকারীদের ইনিংস। একটি করে চার ও ছক্কায় ১৬ রানে অপরাজিত ছিলেন রবীন্দ্র জাদেজা। আগের দিন ভারতকে কাঁপিয়ে দেওয়া ট্রেন্ট বোল্ট নেন ৪ উইকেট। সাউদির শিকার ৩টি। ছোট লক্ষ্য তাড়ায় টম ল্যাথাম ও টম ব্লান্ডেলের সাবধানী ব্যাটিংয়ে নিউ জিল্যান্ড পায় ভালো সূচনা। লাঞ্চের আগে দুজন তোলেন ৪৬ রান। বিরতির পর তাদের জুটি ছাড়ায় শতরান। নিউ জিল্যান্ড এগিয়ে যায় জয়ের পথে। ফিফটি করে ল্যাথাম থামলে ভাঙে ১০৩ রানের জুটি। ৭৪ বলে ১০ চারে বাঁহাতি ব্যাটসম্যান করেন ৫২ রান। অধিনায়ক উইলিয়ামসন দ্বিতীয় ইনিংসেও টিকেছেন কেবল ৮ বল। জয় থেকে ১২ রান দূরে থাকতে বিদায় নেন ব্লান্ডেল। ১১৩ বলে ৮ চার ও এক ছক্কায় ডানহাতি ব্যাটসম্যান করেন ৫৫ রান। ব্যাটিংয়ে ব্যর্থ কোহলি শেষ দিকে হাতে তুলে নিয়েছিলেন বল। এক ওভার বোলিং করে হজম করেন একটি বাউন্ডারি। প্রথম ইনিংসে পাঁচ উইকেট ও ব্যাটিংয়ে ৪৯ রানের জন্য ম্যাচ সেরা হয়েছেন কাইল জেমিসন। দুই ম্যাচে ১৪ উইকেট নিয়ে সিরিজ সেরার পুরস্কার পেয়েছেন সাউদি।

সংক্ষিপ্ত স্কোর: ভারত ১ম ইনিংস: ২৪২। নিউ জিল্যান্ড ১ম ইনিংস: ২৩৫। ভারত ২য় ইনিংস: (আগের দিন ৯০/৬) ৪৬ ওভারে ১২৪ (পৃথ্বী ১৪, মায়াঙ্ক ৩, পুজারা ২৪, কোহলি ১৪, রাহানে ৯, উমেশ ১, বিহারি ৯, পান্ত ৪, জাদেজা ১৬*, শামি ৫, বুমরাহ ৪; সাউদি ১১-২-৩৬-৩, বোল্ট ১৪-৪-২৮-৪, জেমিসন ৮-৪-১৮-০, ডি গ্র্যান্ডহোম ৫-৩-৩-১, ওয়াগনার ৮-১-১৮-১)। নিউ জিল্যান্ড ২য় ইনিংস: (লক্ষ্য ১৩২) ৩৬ ওভারে ১৩২/৩ (ল্যাথাম ৫২, ব্লান্ডেল ৫৫, উইলিয়ামসন ৫, টেইলর ৫*, নিকোলস ৫*; বুমরাহ ১৩-২-৩৯-২, উমেশ ১৪-৩-৪৫-১, শামি ৩-১-১১-০, জাদেজা ৫-০-২৪-০, কোহলি ১-০-৪-০)। ফল: নিউ জিল্যান্ড ৭ উইকেটে জয়ী। সিরিজ: দুই ম্যাচের সিরিজে ২-০ ব্যবধানে জয়ী নিউ জিল্যান্ড। প্লেয়ার অব দা ম্যাচ: কাইল জেমিসন

প্লেয়ার অব দা সিরিজ: টিম সাউদি।

 

রোমাঞ্চকর ম্যাচে হেরে শ্রীলঙ্কায় হোয়াইটওয়াশড উইন্ডিজ

ক্রীড়া প্রতিবেদক ॥ প্রতিটি বলে উত্তেজনা। একটি বাউন্ডারিতে সমীকরণ সহজ হচ্ছে তো একটি উইকেটে ম্যাচ হেলে যাচ্ছে শ্রীলঙ্কার দিকে। হোয়াইটওয়াশড হওয়া এড়াতে চেষ্টার কমতি ছিল না ওয়েস্ট ইন্ডিজের। তবে শেষরক্ষা করতে পারেনি কাইরন পোলার্ডের দল। রোমাঞ্চকর লড়াইয়ে জিতে তাদের হোয়াইটওয়াশ করে ছেড়েছে দিমুথ করুনারতেœর দল। তৃতীয় ও শেষ ওয়ানডেতে ৬ রানে জিতেছে শ্রীলঙ্কা। ৩০৭ রান তাড়ায় ৩০১ রানে থেমেছে ওয়েস্ট ইন্ডিজ। দ্বিতীয়বারের মতো তাদের বিপক্ষে ৩-০ ব্যবধানে সিরিজ জিতল শ্রীলঙ্কা। প্রথমবার জিতেছিল ২০১৫ সালে। ২০০৫ সালের পর থেকে শ্রীলঙ্কায় কোনো ওয়ানডে না জেতা ওয়েস্ট ইন্ডিজ ব্যাটিং অর্ডারে এনেছিল অনেক পরিবর্তন। তিনে উঠে এসেছিলেন নিকোলাস পুরান। গ্রেফ দ্বিতীয়বারের মতো চারে নেমেছিলেন পোলার্ড। কাজে প্রায়ই লেগেই গিয়েছিল এইসব পরিবর্তন। চোটের জন্য নিজের পঞ্চম ওভার অসমাপ্ত রেখে মাঠ ছাড়েন নুয়ান প্রদিপ। তার অভাব কী দারুণভাবেই না পূরণ করলেন অ্যাঞ্জলো ম্যাথিউস। দারুণ বোলিংয়ে ৫৯ রানে ৪ উইকেট নিয়ে গড়ে দিলেন ব্যবধান। ২০১৫ সালের পর প্রথমবারের মতো ওয়ানডেতে কোটা পূরণ করলেন এই অলরাউন্ডার। পাল্লেকেলে ইন্টারন্যাশনাল ক্রিকেট স্টেডিয়ামে শনিবার টস জিতে ব্যাট করতে নেমে সম্মিলিত চেষ্টায় লড়াইয়ের পুঁজি গড়ে শ্রীলঙ্কা। প্রথম আট ব্যাটসম্যানের সবাই যান দুই অঙ্কে। পঞ্চাশ পর্যন্ত যান কেবল কুসল মেন্ডিস ও ধনাঞ্জয়া ডি সিলভা। ৪৮ বলে ৬ চার ও এক ছক্কায় ৫৫ রান করেন মেন্ডিস। ধনাঞ্জয়া ৪৭ বলে খেলেন ৫১ রানের কার্যকর ইনিংস। কাছাকাছি স্ট্রাইক রেটে ৪৪ রান করেন অধিনায়ক করুনারতেœ ও কুসল পেরেরা। শেষের দিকে থিসারা পেরেরা ও ভানিদু হাসারাঙ্গার ঝড়ো ব্যাটিংয়ে তিনশ ছাড়ায় স্বাগতিকদের সংগ্রহ। ৬৫ রানে ৪ উইকেট নিয়ে ওয়েস্ট ইন্ডিজের সেরা বোলার আলজারি জোসেফ। রান তাড়ায় ১১১ রানের উদ্বোধনী জুটিতে ওয়েস্ট ইন্ডিজকে ভালো শুরু এনে দেন শেই হোপ ও সুনিল আমব্রিস। ৬০ বলে ৬০ রান করা আমব্রিসকে ফিরিয়ে শুরুর জুটি ভাঙেন হাসারাঙ্গা। ব্যাটে-বলে নিজেকে মেলে ধরা এই অলরাউন্ডার জেতেন সিরিজ সেরার পুরস্কার। সংক্ষিপ্ত স্কোর: শ্রীলঙ্কা: ৫০ ওভারে ৩০৭ (ফার্নান্দো ২৯, করুনারতেœ ৪৪, কুসল পেরেরা ৪৪, মেন্ডিস ৫৫, ম্যাথিউস ১২, ধনাঞ্জয়া ৫১, থিসারা ৩৮, হাসারাঙ্গা ১৬, উদানা ২, সান্দাক্যান ০, প্রদিপ ০*; কটরেল ১০-১-৫৮-১, হোল্ডার ১০-০-৬৮-২, জোসেফ ১০-০-৬৫-৪, চেইস ১০-০-৫১-১, ওয়ালশ ৩-০-২০-০, পোলার্ড ৭-০-৩৬-১) ওয়েস্ট ইন্ডিজ: ৫০ ওভারে ৩০১/৯  (হোপ ৭২, আমব্রিস ৬০, পুরান ৫০, পোলার্ড ৪৯, ব্রাভো ৮, হোল্ডার ৮, অ্যালেন ৩৭, ওয়ালশ ২, চেইস ০, জোসেফ ০*, কটরেল ১*; প্রদিপ ৪.৩-১-২২-০, থিসারা ৭.৩-০-৫৪-০, উদানা ১০-০-৭৬-১, ম্যাথিউস ১০-০-৫৯-৪, সান্দাক্যান ৩-০-৩১-০, হাসারাঙ্গা ১০-০-৪১-১, ধনাঞ্জয়া ৫-০-১৩-০)। ফল: শ্রীলঙ্কা ৬ রানে জয়ী। সিরিজ: ৩ ম্যাচের সিরিজে শ্রীলঙ্কা ৩-০ ব্যবধানে জয়ী

ম্যান অব দা ম্যাচ: অ্যাঞ্জলো ম্যাথিউস। ম্যান অব দা সিরিজ: ভানিদু হাসারাঙ্গা।

 

বার্সেলোনাকে হারিয়ে শীর্ষে রিয়াল

ক্রীড়া প্রতিবেদক ॥ আক্রমণ-পাল্টা আক্রমণে শুরু থেকেই জমে উঠেছিল এল ক্লাসিকো। তবে সুযোগ হাতছাড়ার মহড়ায় যেন মেতেছিল দুই দল। এরই মাঝে ব্যবধান গড়ে দিলেন ভিনিসিউস জুনিয়র। যোগ করা সময়ে জালের দেখা পেলেন মারিয়ানো দিয়াস। বার্সেলোনাকে হারিয়ে লা লিগার শীর্ষে ফিরল রিয়াল মাদ্রিদ। সান্তিয়াগো বের্নাবেউয়ে ২-০ গোলে জিতেছে জিনেদিন জিদানের দল। সাত ম্যাচ পর চিরপ্রতিদ্বন্দ্বী বার্সেলোনার বিপক্ষে জিতল রিয়াল। লিগে টানা চার জয়ের পর হারল শিরোপাধারী বার্সেলোনা। দুই ম্যাচ পর জয়ের দেখা পেল স্পেনের সফলতম দলটি। শুরুটা ছিল একটু মন্থর। দুই দলই যেন বুঝে নিতে চাইছিল প্রতিপক্ষের কৌশল। এর মধ্যেই সপ্তম মিনিটে ম্যাচে প্রথম সুযোগটা পায় রিয়াল। ডি বক্স থেকে শট লক্ষ্যে রাখতে পারেননি করিম বেনজেমা। প্রথমার্ধ জুড়ে ফরাসি এই স্ট্রাইকার কোনো শট বা হেড রাখতে পারেননি লক্ষ্যে। ২১তম মিনিটে রিয়ালের প্রতি আক্রমণ থেকে বার্সেলোনার ত্রাতা জেরার্দ পিকে। পাল্টা আক্রমণে ম্যাচে নিজেদের প্রথম ভালো সুযোগটি পায় সফরকারীরা। জর্দি আলবার নিচু ক্রস বিপজ্জনক জায়গায় পেয়েও শট লক্ষ্যে রাখতে পারেননি অঁতোয়ান গ্রিজমান। ৩০তম মিনিটে সুযোগ আসে মেসির সামনে। গ্রিজমানের কাছ থেকে বল পেয়ে বার্সেলোনা অধিনায়ক শট নেন গোলরক্ষক বরাবর। ৩৩তম মিনিটে দুইবার ডি বক্স থেকে হেড লক্ষ্যে রাখতে পারেননি বেনজেমা। প্রতি আক্রমণ থেকে পরের মিনিটে এগিয়েই যাচ্ছিল বার্সেলোনা। দারুণ দক্ষতায় সঙ্গে লেগে থাকা টনি ক্রুসকে পেছনে ফেলে এগিয়ে যান আর্থার। কিন্তু গোলরক্ষককে একা পেয়েও বল জালে পাঠাতে পারেননি ব্রাজিলিয়ান মিডফিল্ডার। এগিয়ে এসে কর্নারের বিনিময়ে দলকে বাঁচান থিবো কর্তোয়া। চার মিনিট পর আবার দলের ত্রাতা রিয়াল গোলরক্ষক। সের্হিও বুসকেতসের উঁচু করে বাড়ানো বল বুক দিয়ে নামিয়ে বুলেট গতির শট নেন মেসি। এগিয়ে এসে ঠেকিয়ে দেন কর্তোয়া। দ্বিতীয়ার্ধের শুরুটা ভালো করে বার্সেলোনা। বেশিরভাগ সময় পায়ে বল রেখে আক্রমণে যায় তবে ভাঙতে পারেনি রিয়ালের জমাট রক্ষণ। শুরুতে নিজেদের গুটিয়ে রাখা রিয়াল ধীরে ধীরে আক্রমণে যায়। ৫৫তম মিনিটে ইসকোর বাঁকানো শট ঝাঁপিয়ে পড়ে কোনোমতে কর্নারের বিনিময়ে রক্ষা করেন মার্ক-আন্ড্রে টের স্টেগেন। ম্যাচে এটাই ছিল বার্সেলোনা গোলরক্ষকের প্রথম বড় পরীক্ষা। এরপর থেকে অবশ্য একের পর এক পরীক্ষা দিয়ে যেতে হয়েছে তাকে। ৬১তম মিনিটে আবার বেঁচে যায় বার্সেলোনা। এবার ত্রাতা পিকে। ইসকোর হেড ঠিক মতো বিপদমুক্ত করতে পারেননি টের স্টেগেন। বল চলে যাচ্ছিল জালে। গোল লাইনের সামনে থেকে ঠেকিয়ে দেন পিকে। পরের মিনিটে বিপজ্জনক জায়গা থেকে ভলি লক্ষ্যে রাখতে পারেননি বেনজেমা। বদলি নেমেই জালের দেখা প্রায় পেয়েই যাচ্ছিলেন মার্টিন ব্রাথওয়েট। মার্সেলোকে কাটিয়ে ফাঁকি দিয়েছিলেন কর্তোয়াকে। তবে রাফায়েল ভারান ঠেকিয়ে দেন বার্সেলোনা ফরোয়ার্ডকে। ৭২তম মিনিটে এগিয়ে যায় রিয়াল। ক্রুসের কাছ থেকে বল পান ভিনিসিউস জুনিয়র। অরক্ষিত এই ফরোয়ার্ডের শট ¯¬াইড করা পিকের পায়ে লেগে দিক পাল্টে জালে জড়ায়। কিছুই করার ছিল না বার্সেলোনা গোলরক্ষকের। ৭৫তম মিনিটে প্রতি আক্রমণ থেকে সমতা আনার সুযোগ আসে মেসির সামনে। মার্সেলো ও ভারানের যৌথ চেষ্টায় বেঁচে যায় রিয়াল। ৮৩তম মিনিটে মেসির ফ্রি-কিকে হেড লক্ষ্যে রাখতে পারেননি পিকে। যোগ করা সময়ে বদলি নেমে পরের মিনিটে জালের দেখা পান মারিয়ানো। সামুয়েল উমতিতিকে গতিতে পেছনে ফেলে কোনাকুনি শটে টের স্টেগেনকে পরাস্ত করেন তিনি। চলতি মৌসুমে লা লিগায় এটাই তার প্রথম ম্যাচ! এই জয়ে ২৬ ম্যাচে ৫৬ পয়েন্ট নিয়ে শীর্ষে উঠে গেল রিয়াল। আসরে পঞ্চম হারের তেতো স্বাদ পাওয়া বার্সেলোনা ৫৫ পয়েন্ট নিয়ে আছে দুই নম্বরে।

 

আনুশকার সুন্দর শরীরের রহস্য কী!

বিনোদন বাজার ॥ অভিনয় দক্ষতার পাশাপাশি আকর্ষণীয় শারীরিক গড়নের জন্য বহু প্রশংসা পেয়েছেন তিনি। এবার নিজের জিম-রহস্যের ঝলক দিলেন আনুশকা শর্মা। ভক্তদের জন্য ইনস্টাগ্রামে পোস্ট করলেন একটি ভিডিও।

ভিডিওতে দেখা যাচ্ছে ৩০ কেজির বারবেল ওয়েট লিফটিং করছেন আনুশকা শর্মা। সেই ভিডিওতে তিনি লিখেছেন, আমিও পারি ভাই। আনুশকার জিমের এ ভিডিও ভাইরাল হতে সময় লাগেনি।

প্রসঙ্গত, আনুশকা শর্মাকে শেষ দেখা গিয়েছিল ২০১৮ সালে শাহরুখ খানের সঙ্গে ‘জিরো’ সিনেমাতে। সিনেমাটি বক্স অফিসে সফলতার মুখ দেখেনি। এরপর নতুন কোনো সিনেমায় যুক্ত হননি আনুশকা।

বঙ্গবন্ধুর জন্মশতবর্ষে ‘জনকের মুখ’

বিনোদন বাজার ॥ তথ্য মন্ত্রণালয় এবং মুজিববর্ষ উদযাপন কমিটির আর্থিক সহযোগিতায় নির্মিত হলো স্বল্পদৈর্ঘ্য সিনেমা জনকের মুখ। ৪০ মিনিট ব্যাপ্তির সিনেমাটির কাহিনী, চিত্রনাট্য লিখেছেন ও পরিচালনা করেছেন মান্নান হীরা। সিনেমায় মমতা চরিত্রে অভিনয় করেছেন ফারজানা ছবি এবং সোলায়মান চরিত্রে স্বাক্ষ্য শহীদ।

মমতা চরিত্রে অভিনয় প্রসঙ্গে ফারজানা ছবি বলেন, বাস্তবিকভাবে আমি মুক্তিযুদ্ধ দেখিনি। কিন্তু সিনেমায় আমি যে চরিত্রটি করেছি যুদ্ধের বিভীষিকা নিজের মধ্যে ধারণ করে অদেখা সব চরিত্রের কাল্পনিক অস্তিত্ব সৃষ্টি করতে হয়েছে। সিনেমায় বেশ কিছু দৃশ্যে মমতা চরিত্রের সঙ্গে বঙ্গবন্ধুর সরাসরি কথোপকথন দেখানো হয়েছে। যা আমার জন্য বিশাল এক প্রাপ্তি। বলা যায়, এটি আমার স্বপ্নের একটি কাজ।

এদিকে সিনেমাটি প্রসঙ্গে নির্মাতা বলেন, সিনেমাটি বঙ্গবন্ধুর জন্মশতবর্ষকে কেন্দ্র করে নির্মিত। আগামী ১৭ মার্চ থেকে বছরব্যাপি সারাদেশে প্রদর্শিত হবে। এছাড়াও বিভিন্ন দেশের উৎসবগুলোতে পাঠানোর পরিকল্পনা রয়েছে।

পহেলা বৈশাখে মম’র দুই নাটক

বিনোদন বাজার ॥ নাট্যনির্মাতা সাগর জাহান পরিচালিত বৈশাখের দুটি বিশেষ নাটকে অভিনয় করলেন জাকিয়া বারী মম। তার বিপরীতে দুটি নাটকেই ছিলেন মোশাররফ করিম। গত ২৮ ফেব্রুয়ারি থেকে পূবাইলে ‘এক বৈশাখী ভোরে’ ও ‘বনলতা ও জোনাকির গল্প’ শিরোনামের এই দুটি নাটকের শুটিংয়ে ব্যস্ত সময় পার করছেন নির্মাতা ও কলাকুশলীরা।

‘এক বৈশাখী ভোরে’ মমর বিপরীতে মোশাররফ অভিনয় করেছেন শাহীন চরিত্রে এবং ‘বনলতা ও জোনাকির গল্প’ নাটকে অভিনয় করেছেন তমাল চরিত্রে। আর মম একটিতে রূপা, অন্যটিতে জোনাকি চরিত্রে অভিনয় করেছেন। নাটক দুটির গল্প প্রসঙ্গে সাগর জাহান জানান, এক বৈশাখী ভোরে নাটকের গল্পে দেখা যাবে রূপাকে তার পরিবার বয়স্ক একজন লোকের সঙ্গে বিয়ে দিতে চায়। কিন্তু রূপা তার প্রেমিকের হাত ধরে পালিয়ে যেতে চায়। পালিয়ে গিয়ে গাড়ি ঠিক করতে গিয়ে রূপার দেখা হয় সিএনজি চালক ড্রাইভার শাহীনের সঙ্গে। এগিয়ে যায় গল্প।

আবার ‘বনলতা ও জোনাকির গল্প’ নাটকে দেখা যাবে শহর থেকে এক অজ পাড়াগাঁয়ে নানুর বাড়িতে বেড়াতে আসে জোনাকি। সেখানে এসে দেখা হয় গ্রামের শিক্ষিত সচেতন আত্মবিশ্বাসী ছেলে তমালের সঙ্গে। গ্রামের ছেলেদের শিক্ষিত সচেতন করে তুলতে শুধু একদিনের জন্য নয় সারাজীবনের জন্য তমাল তার পাশে চায় জোনাকিকে। তমালের প্রেমিকা ছিল বনলতা। হারিয়ে যাওয়া বনলতাকেই তমাল খুঁজে পেতে চায় জোনাকির মাঝে।’

জাকিয়া বারী মম বলেন, ‘সাগর জাহান ভাইয়ের নির্দেশনায় সর্বশেষ কাজ করেছিলাম মিম ফ্যাশন অ্যান্ড বিউটি নাটকে, তা এখনো প্রচার হয়নি। নতুন যে দুটি নাটকে কাজ করেছি, দুটি নাটকের গল্পই ভীষণ সুন্দর। সহশিল্পী হিসেবে মোশাররফ ভাই থাকা মানেই হল অভিনয়ে আরো কিছু নতুন অভিজ্ঞতা যুক্ত হওয়া।’ সাগর জাহান জানান, দুটি নাটকই আসছে পহেলা বৈশাখে ভিন্ন দুটি চ্যানেলে প্রচার হবে।

৪ বছর পর দেখা হবে, ইনশাআল্লাহ: বুবলী

বিনোদন বাজার ॥ লিপইয়ার বা অধিবর্ষ নিয়ে সামাজিকমাধ্যমে একটি স্ট্যাটাস দিয়েছেন ঢাকাই চলচ্চিত্রের জনপ্রিয় নায়িকা শবনম বুবলী।

দিনটি বিশেষভাবে উদযাপন করে ইনস্টাগ্রাম হ্যান্ডেলে নিজের একটি ছবি শেয়ার করেন নায়িকা।

ক্যাপশনে নায়িকা লিখেছেন, ‘হ্যালো #লিপইয়ার ২৯.০২.২০২০। চার বছর পর ফের দেখা হবে, ইনশাআল্লাহ।’ হাসির ইমোকনও যুক্ত করেন তিনি। এ সময় বুবলী টি-শার্ট পরিহিত ছিলেন।

হঠাৎ করে সিনেমাপাড়া থেকে বুবলীর উধাও হয়ে যাওয়ার পর সম্প্রতি সুপাস্টার শাকিব খানকে জড়িয়ে চিত্রনায়িকা শবনম বুবলীকে নিয়ে মিডিয়াপাড়ায় নানা গুঞ্জন শুরু হয়।

বলাবলি হচ্ছিল- শাকিবের সাবেক স্ত্রী অভিনেত্রী অপু বিশ্বাসের পথেই হাঁটছেন বুবলী। শাকিব খানের সঙ্গে গোপনে সংসার পেতেছেন তিনি। তাকে যুক্তরাষ্ট্রেও পাঠিয়েছেন শাকিব খান।

তবে অবশেষে আড়াল ভেঙে মুখ খুললেন বুবলী। সবকিছুকে ‘গুজব’ বলে উড়িয়ে দেন এই অভিনেত্রী। এরপর থেকে সামাজিকমাধ্যমে সক্রিয় হন।

সুরকার সেলিম আশরাফ আর নেই

বিনোদন বাজার ॥ প্রখ্যাত সুরকার সেলিম আশরাফ আর নেই (ইন্নালিল্লাহি … রাজিউন)।

রোববার দিনগত রাত ৩টায় তিনি শেষ নিঃশ্বাস ত্যাগ করেছেন। সেলিম আশরাফের মৃত্যুর বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন তার স্ত্রী বিশিষ্ট কণ্ঠশিল্পী আলম আরা মিনু।

দেশাত্মবোধক গান ‘যে মাটির বুকে ঘুমিয়ে আছে লক্ষ মুক্তি সেনা’সহ অনেক জনপ্রিয় গানের সুর দিয়েছিলেন সেলিম আশারাফ। এ ছাড়া বেশ কিছু গান শ্রোতামহলে দারুণভাবে সাড়া ফেলে।

 

জানা যায়, চার বছর ধরে অসুস্থ ছিলেন সেলিম আশরাফ। গত বছরের ফেব্রুয়ারিতে শ্বাসকষ্ট, রক্ত ও কিডনি সমস্যা বেড়ে যাওয়ায় রাজধানীর ইউনাইটেড হাসপাতালে ভর্তি হয়েছিলেন তিনি। চিকিৎসা নিয়ে বেশ অর্থকষ্টে পড়েছিলেন। পরে প্রধানমন্ত্রী তার পাশে দাঁড়ান এবং ১০ লাখ টাকার একটি সঞ্চয়পত্র দেন।

তার চিকিৎসা সহায়তায় এগিয়ে আসেন সাবিনা ইয়াসমীন ও সৈয়দ আব্দুল হাদী। পাশে দাঁড়ান অসুস্থ এন্ড্রু কিশোরও; কিন্তু এবার আর তিনি অসুস্থতার সঙ্গে লড়াই করে পারলেন না। চলেই গেলেন না ফেরার দেশে।

এর আগে ২০১৮ সালের সেপ্টেম্বরে চেন্নাইয়ে শ্রীরাম মেডিকেল সেন্টারে ১৩ দিন চিকিৎসা শেষে দেশে ফেরেন এই সুরগ্রষ্টা। তখন খানিক সুস্থতাবোধ করলেও কিছু দিন যেতে না যেতেই ফের অসুস্থ হয়ে পড়েন তিনি।

মোদির সেই সাক্ষাতকার নিয়ে অক্ষয়কে ‘জ্ঞান’ দিলেন জাইরা ওয়াসিম

বিনোদন বাজার ॥ ২০১৯ সালের লোকসভা নির্বাচনের আগে প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির ‘অরাজনৈতিক’ সাক্ষাৎকার নিয়েছিলেন বলিউড সুপারস্টার অক্ষয় কুমার।

সেখানে মোদিকে করা একটি প্রশ্ন নিয়ে সম্প্রতি অক্ষয়কে কটাক্ষ করলেন ‘দঙ্গল’ তারকা জাইরা ওয়াসিম।

ওই সাক্ষাৎকারে অক্ষয় কুমার প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদিকে প্রশ্ন করেছিলেন- অনেক ছেলেমেয়েই এই প্রশ্নের উত্তর জানতে চায় যে, আমাদের প্রধানমন্ত্রীজি কীভাবে আম খান?’

উত্তরে মোদি বলেছিলেনÑ ‘আমি আম ভালোবাসি। গুজরাটে অমরার ঐতিহ্যও রয়েছে।’

শৈশবের স্মৃতিচারণ করে মোদি বলেছিলেন, তার আম কেনার সামর্থ্য ছিল না। তাই মাঠের আমগাছ থেকে আম পেড়ে খেতেন।

সাক্ষাৎকারটি অনেক দিন আগের হলেও হঠাৎই এ নিয়ে প্রতিক্রিয়া জানালেন কাশ্মীরের মেয়ে জাইরা।

এক টুইটবার্তায় অক্ষয়কে উদ্দেশ করে জাইরা লেখেন, “প্রশ্নটা হওয়া উচিতÑ ‘রাতে আপনার আরামে ঘুম কীভাবে আসে’, ‘কীভাবে আম খান’, তা নয়।”

বিতর্কিত নাগরিকত্ব আইন ঘিরে দিল্লিতে উগ্র হিন্দুত্ববাদীদের হামলায় ব্যাপক প্রাণহানি ও ধ্বংসযজ্ঞের পরই জাইরা এমন প্রতিক্রিয়া জানালেন।

দিল্লি সহিংসতা নিয়ে বলিউডের অনেক তারকা এ নিয়ে সোচ্চার হলেও অক্ষয় কুমার নীরব থাকার জন্য হয়তো তাকে কটাক্ষ করেছেন জাইরা।

তবে দঙ্গলকন্যার টুইটের কোনো জবাব দেননি বলিউডের এই সুপারস্টার।

প্রসঙ্গত দিল্লিতে ২৩ ফেব্রুয়ারি শুরু হওয়া হিন্দুত্ববাদী তা-বে নিহতের সংখ্যা লাফিয়ে লাফিয়ে বেড়েছে।

ভারতের স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের তথ্যমতে, ২৬ ফেব্রুয়ারি নিহতের সংখ্যা ছিল ২৭, বৃহস্পতিবার ৩৮-এ পৌঁছায়। শুক্রবার এ সংখ্যা বেড়ে দাঁড়ায় ৪২-এ।

হাসপাতাল সূত্র জানায়, ২১ জন গুলিবিদ্ধ হয়ে মারা গেছেন। নিহতের সংখ্যা আরও বাড়তে পারে বলে আশঙ্কা করা হচ্ছে। কারণ আহতদের মধ্যে অনেকে এখনও ঝুঁকিমুক্ত নন। দৃষ্টিশক্তিও পুরোপুরি হারিয়ে ফেলেছেন অনেকে।

টাইগার আমাকে কিছুই বলেনি: শ্রদ্ধা কাপুর

বিনোদন বাজার ॥ ‘আশিকি টু’ সিনেমার পর আর পেছন ফিরে তাকাতে হয়নি শ্রদ্ধা কাপুরকে। একের পর এক হিট ছবি জমা হয়েছে তার সফলতার ঝুলিতে। তবে শুধু যে সিনেপ্রেমীরাই তার ভক্ত এমনটা কিন্ত নয়। বহু তারকাকেও নিজের মিষ্টি হাসি দিয়ে ভুলিয়েছেন শ্রদ্ধা। সম্প্রতি শ্রদ্ধার ব্যাপারে নিজের মনের কথা জানিয়েছেন টাইগার শ্রফ। তাকে যে সেই স্কুলজীবন থেকে পছন্দ এতদিন পর সেটা অকপটে বলে উঠতে পেরেছেন টাইগার। এই নিয়ে রীতিমতো তোলপাড় হয়ে গিয়েছে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে। তবে টাইগার একা নন, তারও আগে আরও এক অভিনেতা শ্রদ্ধার প্রতি নিজের দুর্বলতার কথা জানিয়েছিলেন। তিনি শ্রদ্ধারই সহ-অভিনেতা বরুণ ধাওয়ান। এর আগে একটি রিয়েলিটি শোতে এসে তিনি জানান, এক সময় তিনিও শ্রদ্ধার ওপর দুর্বল হয়ে পড়েছিলেন।

এমনকি সেই শোতেই হাঁটু গেড়ে বসে শ্রদ্ধাকে ফুল উপহার দেন বরুণ। সেই ভিডিওই আবারও ভাইরাল হয়েছে সোশ্যাল মিডিয়ায়।

সম্প্রতি আগামী ছবির প্রচার করতে একটি সাক্ষাৎকারে এসেছিলেন টাইগার শ্রফ ও শ্রদ্ধা কাপুর। সেখানে অভিনেতা জানান, একই স্কুলে পড়তেন তারা এবং সেই সময় থেকেই শ্রদ্ধাকে মন দিয়ে বসেন তিনি। টাইগার আরও জানান, তিনি খুবই ভীতু ছিলেন।

এ প্রসঙ্গে শ্রদ্ধা বলেন, ‘টাইগার তো আমাকে কিছুই বলেনি। বললে হয়তো তখন ভেবে দেখা যেত।’Ñএমনটা বলে হেসে ওঠেন শ্রদ্ধা।

ঝিনাইদহের মহেশপুরে ক্যাপসিকাম চাষে সফল

ঝিনাইদহ প্রতিনিধি ॥ ঝিনাইদহের মহেশপুরে প্রথমবারের মতো ক্যাপসিকাম চাষ করে সফল হয়েছেন মামা সুলতান মাহমুদ ও ভাগ্নে আলমগীর কবির। ইতোমধ্যে বাগানের ফল বিক্রি করে লাভবান হয়েছেন তারা। উপজেলার সীমান্তবর্তী কুসুমপুর মাঠপাড়ায় মামা সুলতান মাহমুদ ও ভাগ্নে আলমগীর তিন একর জমিতে ক্যাপসিকাম চাষ করে। জানা গেছে, শুরুতে বাংলাদেশি কিছু বীজ থেকে চারা তৈরির চেষ্টা করে সফলতা পাননি তারা। এরপর কৃষি বিভাগের সহযোগিতায় দক্ষিণ কোরিয়া থেকে বীজ এনে বীজতলা করেন। সেখান থেকে ১৫শ’ চারা তিন একর জমিতে রোপণ করেন। দু-মাস পর থেকেই শুরু হয় ফল সংগ্রহ। সাধারণত সেপ্টেম্বরের মাঝামাঝিতে বীজ ছিটানোর পর নভেম্বর থেকেই জমি তৈরি করে মালচিং পেপার দিয়ে চারা রোপণ শুরু হয়। ক্যাপসিকাম চাষি সুলতান মাহমুদ বলেন, বিদেশি এই ফসলের জন্য তাপমাত্রা লাগে ১৫ থেকে ২৫ ডিগ্রি সেলসিয়াস। কিন্তু এখানে অনেক সময় কম-বেশি হয়েছে। তবুও আমাদের ফলনের কমতি হয়নি। এ বছর বাংলাদেশের কোথাও ক্যাপসিকামের ভালো ফলন হয়নি, কিন্তু আমাদের ফলন ভালো হয়েছে। তিনি জানান, এক একর জমিতে ১৫শ’ গাছ লাগিয়েছিলাম। তবে  সেখান থেকে ৭শ’র মতো গাছ মারা যায় আর বাকিগুলো থেকে ফল সংগ্রহ চলছে। প্রতি গাছে ১২ থেকে ১৫টি ফল আছে। ৫-৬টি ফলে এক কেজি হচ্ছে। পাইকারি এই ফল ঢাকায় অর্ডারে পাঠাই ১৩০ থেকে ১৬০ টাকা কেজি দামে। বর্তমানে প্রতিদিন ৫-৭ শ’ কেজি ফল পাঠানো হচ্ছে ঢাকায়। ক্ষেত থেকে ক্যাপসিকাম আরও প্রায় ১২০ দিন সংগ্রহ করা যাবে। আবার অনেক গাছেই নতুন করে ফুল থেকে ফল আসছে। অপর চাষি আলমগীর কবির বলেন, ইতোমধ্যে ৪ লাখ টাকার বিক্রি হয়েছে। আরও ৬ লক্ষাধিক টাকার বিক্রির আশা করছি । সাধারণত ক্ষেত থেকে তুলে ফলগুলো প্যাকেজিং করে ঢাকায় পাঠানো হয়। কৃষি কর্মকর্তারা সবসময়ই আমাদের ক্ষেতে আসছেন, খোঁজ-খবর নিয়ে নানা পরামর্শ দিচ্ছেন। ফলে আমরাও তাদের পরামর্শে কাজ করে ভালো ফলাফল পাচ্ছি। ক্যাপসিক্যাম ক্ষেতে আসা দর্শনার্থী আব্বাস আলী বলেন, নতুন একটি ফল চাষ হয়েছে শুনে এখানে এসেছি। এ ফল আগে আমরা কোনোদিন দেখিনি। বিদেশি এ ফল আমাদের মহেশপুরে চাষ হচ্ছে, দেখে খুবই ভালো লাগছে। উপজেলার স্বরূপপুর ব্লকের উপ-সহকারী কৃষি কর্মকর্তা রবিউল কবির জানান, ক্যাপসিকামের মূল শত্র“ এফিডজ্যাসিড জাতীয় কিছু  পোকা। এই পোকা দমনে এখানে ব্যবহার করা হচ্ছে বিষমুক্ত ইয়োলো ও ব্ল ট্রাপ। এই  পোকা না লাগলে ফলন অনেক ভালো হয়। মহেশপুর উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা হাসান আলী  জানান, মামা-ভাগ্নে ক্যাপসিকাম চাষে ঝিনাইদহের অর্থনীতিতে অবদান রাখছেন। আমদানি ক্যাপসিকামের তুলনায় আমাদের উৎপাদিত ক্যাপসিকামের গুণগত মান অনেক ভালো। ফলে স্থানীয় চাহিদা মিটিয়ে এটি বিদেশে রফতানির সম্ভাবনা রয়েছে। আগামীতে পুষ্টিগুণসমৃদ্ধ এই চাষ বাড়াতে পরামর্শের পাশাপাশি বিভিন্ন এলাকার কৃষককে ক্ষেতে এনে উৎসাহিত করা হচ্ছে। তিনি জানান, প্রথমে যখন চাষটি শুরু হয়েছিল তখন অনেক গুঞ্জন তৈরি হয়েছিল স্থানীয়দের মধ্যে। কিন্তু সেই গুঞ্জনকে পেছনে ফেলে সফলতা এসেছে। তাই অবশ্যই আমরা বলতে পারি, এই অঞ্চলের মাটি ও আবহাওয়া ক্যাপসিকাম চাষের জন্য উপযোগী।