জেলা প্রশাসনের ইতিহাসে সর্ববৃহৎ ও জমকালো বনভোজন

গ্রীণ ভ্যালি পার্কে বসেছিল কুষ্টিয়ার সর্বশ্রেণীর মানুষের মিলনমেলা

নিজ সংবাদ ॥ কুষ্টিয়া জেলা প্রশাসনের উদ্যোগে বাৎসরিক বনভোজন অনুষ্ঠিত হয়েছে। গতকাল শনিবার নাটোর জেলার লালপুরে অবস্থিত গ্রীণ ভ্যালি পার্কে বাৎসরিক এ বনভোজনের আয়োজন করা হয়। কুষ্টিয়ার জেলা প্রশাসক আসলাম হোসেনের পৃষ্ঠপোষকতায় জেলা প্রশাসনের এই পিকনিক সর্বশ্রেণীর মানুষের মিলনমেলায় পরিণত হয়। কুষ্টিয়া জেলা প্রশাসনের ইতিহাসে এটাই সবচেয়ে জমকালো এবং সর্ববৃহৎ বনভোজন। সকাল সাড়ে ৮টায় কুষ্টিয়া কালেক্টরেট চত্বর জেলা প্রশাসনের কর্মকর্তা, কর্মচারী ও তাদের পরিবারের সদস্যদের যাত্রা শুরু হয় নাটরের লালপুরস্থ গ্রীণ ভ্যালি পার্কের উদ্দেশ্যে। পিকনিকে অংশগ্রহণকারীদের জন্য সকালের নাস্তার ব্যবস্থা করেন জেলা প্রশাসন। সাড়ে ১০টার মধ্যে অতিথিসহ সকলেই পৌছে যান সেখানে। জেলা প্রশাসনের বনভোজন আয়োজক কমিটির অধিকাংশ সদস্য শুক্রবার সেখানে গিয়ে পৌছে যায়। তারা অংশগ্রহণকারীদের খাবার প্রস্তুতের কাজে নিয়োজিত ছিল। জেলা প্রশাসকসহ পদস্থ কর্মকর্তারা তাদের সহধর্মীনি ও সন্তানদের নিয়ে ড্রিম ভ্যালি পার্কে পৌছার পর শুরু হয় বনভোজনের মূল কার্যক্রম। বনভোজন মঞ্চে চলে সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান। এ অনুষ্ঠানে বেশীর ভাগ শিল্পীই ছিল জেলা প্রশাসনের কর্তাব্যক্তিরা। কুষ্টিয়া সদর উপজেলা ভূমি অফিসের সহকারী কমিশনার নাহিদ হাসান খান একাই মাতিয়ে রাখেন দর্শকদের। মনকাড়া সঙ্গীত পরিবেশন করেন স্থানীয় সরকারের উপ-পরিচালক মৃণাল কান্দি দে ও স্ত্রী। সকাল থেকে বিকেল ৫টায় লটারীর ড্র অনুষ্ঠিত হওয়ার আগ পর্যন্ত চলে সাংস্কৃতিক প্রতিযোগিতা।   স্থানীয় সরকারের উপ-পরিচালক মৃণাল কান্দি দে’র মেয়ের নৃত্য পরিবেশন দেশে মুগ্ধ হয়ে তাকে নগদ উপহার দেন জেলা প্রশাসক আসলাম হোসেন। এর ফাকে ফাকে চলে ক্রীড়ানুষ্ঠান। দু’গ্র“পের শিশুদের চকলেট দৌড়, অফিস কর্মচারীদের বাসকেটে বল ফেলা, অতিথিদের হাড়ি ভাঙ্গা প্রতিযোগিতা। জেলা প্রশাসনের এই আনন্দময় আয়োজন উপভোগ করেন অংশগ্রহণকারী সকলেই। তারা জেলা প্রশাসক আসলাম হোসেন সহ যারা এই আয়োজনের সাথে জড়িত তাদেরকে সাধুবাদ জানিয়েছেন। বার্ষিক বনভোজনে অন্যান্যের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন, কুষ্টিয়া জেলা ও দায়রা জজ আদালতের বিচারক আশরাফুল ইসলাম, নাটোরের জেলা প্রশাসক মোঃ শাহরিয়াজ, কুষ্টিয়ার অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মোঃ গোলাম সবুর, কুষ্টিয়া সদর উপজেলা চেয়ারম্যান ও শহর আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক আতাউর রহমান আতা, কুষ্টিয়া জজ কোর্টের বিজ্ঞ পিপি ও জেলা আইনজীবী সমিতির নবনির্বাচিত সভাপতি অ্যাডভোকেট অনুপ কুমার নন্দী, সাধারণ সম্পাদক অ্যাডভোকেট আবু সাঈদ, বিজ্ঞ জিপি আ.স.ম আখতারুজ্জামান মাসুম, ভেড়ামারা উপজেলা চেয়ারম্যান আকতারুজ্জামান মিঠু, দৌলতপুর উপজেলা চেয়ারম্যান এজাজ আহমেদ মামুন, কুষ্টিয়া জেলা মুক্তিযোদ্ধা কমান্ডের সাবেক ডেপুটি কমান্ডার ও সচেতন নাগরিক কমিটি কুষ্টিয়ার সভাপতি রফিকুল ইসলাম টুকু, কুষ্টিয়া জেলা প্রশাসনের স্থানীয় সরকার শাখার উপ পরিচালক মৃণাল কান্তি দে, অতিরিক্ত জেলা ম্যাজিস্ট্রেট (সার্বিক) আজাদ জাহান, অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (রাজস্ব) মুহাম্মদ ওবায়দুর রহমান, অতিরিক্ত জেলা ম্যাজিস্ট্রেট লুৎফুন নাহার, কুষ্টিয়া সদর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা, জুবায়ের চৌধুরী, কুমারখালী উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা রাজিবুল ইসলাম খান, খোকসা উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মৌসুমী জেরিন কান্তা, দৌলতপুর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা শারমিন আক্তার, দৌলতপুর ভূমি অফিসের সহকারী কমিশনার আজগর আলী, ভেড়ামারা উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা সোহেল মারুফ, কুষ্টিয়া সদর উপজেলা ভূমি অফিসের সহকারী কমিশনার নাহিদ হাসান খান, নাটোরের লালপুর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা উম্মুল বানীন দ্যুতি, কুষ্টিয়া সমিতি ঢাকার সভাপতি এম এ সালাম, মহাসচিব ও দিশার নির্বাহী পরিচালক রবিউল ইসলাম, কুষ্টিয়া প্রেসক্লাবের সাধারণ সম্পাদক চ্যানেল আই কুষ্টিয়া প্রতিনিধি ও দৈনিক আন্দোলনের বাজার পত্রিকার সম্পাদক আনিসুজ্জামান ডাবলু, বাসস কুষ্টিয়া জেলা প্রতিনিধি ও কুষ্টিয়ার কাগজ পত্রিকা সম্পাদক নুর আলম দুলাল, কুষ্টিয়া প্রেসক্লাবের সহ-সভাপতি ও দৈনিক কালের কন্ঠ পত্রিকার কুষ্টিয়া প্রতিনিধি তারিকুল হক তারিক, দৈনিক মাটির ডাক পত্রিকার সম্পাদক প্রকাশক ও কুষ্টিয়া প্রেসক্লাবের সহ-সভাপতি লুৎফর রহমান কুমার, চ্যানেল টোয়েন্টিফোরের কুষ্টিয়া প্রতিনিধি ও কুষ্টিয়া প্রেসক্লাবের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক শরীফ বিশ্বাস, সময়ের কাগজ পত্রিকার ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক ও কুষ্টিয়া প্রেসক্লাবের যুগ্ম সম্পাদক নুরুন্নবী বাবু,  প্রথম আলোর কুষ্টিয়া প্রতিনিধি তৌহিদী হাসান, দৈনিক মাটির পৃথিবীর সম্পাদক-প্রকাশক এম এ জিহাদ, ডেইলি অবজারভার কুষ্টিয়া প্রতিনিধি পিএম সিরাজ, দৈনিক দিনের খবর পত্রিকার সম্পাদক প্রকাশক ফেরদৌস রিয়াজ জিল্লু, যমুনা টেলিভিশনের কুষ্টিয়া প্রতিনিধি মাহাতাব উদ্দিন লালন, বাংলা টিভির কুষ্টিয়া প্রতিনিধি লিটন উজ্জামান, সাংবাদিক ইউনিয়ন কুষ্টিয়ার সভাপতি রাশিদুল ইসলাম বিপ্লবসহ কুষ্টিয়া জেলা প্রশাসন, উপজেলা প্রশাসনের কর্মকর্তা কর্মচারী তাদের পরিবারের সদস্যরা উপস্থিত ছিলেন। দিনব্যাপী জেলা প্রশাসনের এই বনভোজন এক মিলন মেলায় পরিনত হয়। দুপুরের খাবারের পর আবারও শুরু হয় সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান। এরপর অনুষ্ঠিত হয় ক্রীড়া প্রতিযোগিতায় জয়ীদের মাঝে পুরস্কার বিতরনী। পুরস্কার তুলে দেন জেলা প্রশাসক আসলাম হোসেন ও তার সহধর্মীনি। বনভোজনের মূল আকর্ষণ পর্ব র‌্যাফেল ড্র শুরু সোয়া ৪টা নাগাদ। ৪০টি পুরস্কার প্রদান করা হয় এই লটারীতে। লটারীর টিকিট ক্রয়কারী সকলেই অধির আগ্রহে সেখানে উপস্থিত থেকে তাদের ক্রয়কৃত টিকিটে পুরস্কার পেয়েছে কিনা তা দেখতে। বিকেল ৫টায় সমাপণী বক্তব্যের মধ্যদিয়ে জেলা প্রশাসক মোঃ আসলাম হোসেন বার্ষিক ভোজনের ইতি টানেন। এ সময় তিনি উপস্থিত সকলকে দিনব্যাপী আয়োজনে অংশগ্রহনের জন্য ধন্যবাদ জানান। তিনি যারা এ আয়োজন সফল করতে অক্লান্ত পরিশ্রম করেছেন এবং যে সব অতিথি শত ব্যস্ততা ফেলে মূল্যবান সময় দিয়ে বনভোজনকে সার্থক ও সফল করেছেন তাদের প্রতি কৃতজ্ঞতা জানান। অনুষ্ঠান পরিচালনা করেন জেলা প্রশাসনের এনডিসি মুসাব্বিরুল ইসলাম।

ইরফান-ফারিয়ার ‘একমুঠো জোনাকি’

বিনোদন বাজার ॥ নাটক ‘একমুঠো জোনাকি’। শফিকুর রহমান শান্তনুর রচনায় নাটকটি পরিচালনা করেছেন দীপু হাজরা।

নাটকটি প্রসঙ্গে নির্মাতা বলেন, নাটক নির্মাণে আমাদের কিছু সীমাবদ্ধতা থাকে। অভিনেতাদের সকলের আপ্রাণ চেষ্টা, পুরো টিমের অক্লান্ত পরিশ্রম সবকিছু মিলিয়ে আশা করছি ভালো একটি কাজ হয়েছে। দর্শকের ভালো লাগবে বলেই বিশ্বাস করছি।

নাটকের অভিনেতা ইরফান সাজ্জাদ বলেন, নাটকটি সমসাময়িক ঘটনাকে কেন্দ্র করে নির্মিত হয়েছে। সাদামাটা বন্ধুত্বের, প্রেম, বিরহের গল্পের বাইরে একটি ভিন্ন রকম গল্প। চেষ্টা করেছি ভালো অভিনয় করতে। এখন কতটুকু পেরেছি তা দর্শকই ঠিক করবে। তবে আশা করছি, দর্শকের নাটকটি ভালো লাগবে।

নাটকটিতে বিভিন্ন চরিত্রে অভিনয় করেছেন ইরফান সাজ্জাদ, শবনম ফারিয়া, মাসুম বাশার, নিঝু মনি, ফরিদ মোহাম্মদ, নাজিরুল আপন, শুভ, ফাইজা, নজরুল ইসলাম প্রমূখ। নাটকটি প্রযোজনা করেছেন মোজাফফর দিপু।

সালমান হৃদয়ে ছিলেন, থাকবেন: মৌসুমী

বিনোদন বাজার ॥ ১৯৯৩ সালে ‘কেয়ামত থেকে কেয়ামত’ ছবি দিয়ে ঢাকাই সিনেমায় হাতেখড়ি হয় সালমান শাহর। স্মার্টনেস-গ্লামার ও পারসোনালিটির কারণে রাতারাতি তরুণ প্রজন্মের আইকনে পরিণত হয়ে ওঠেন এ নায়ক। মাত্র সাড়ে তিন বছরের ক্যারিয়ারে ২৭টি ছবি করেন। যার অধিকাংশই সুপারহিট।

মৌসুমীর সঙ্গে জুটি বেঁধে চলচ্চিত্র অঙ্গনে পা রাখলেও সালমানের বেশিরভাগ ছবির নায়িকা শাবনূর। এই জুটি তখন এমন জনপ্রিয় হয়ে উঠেছিল যে, যে কোনো ছবি মুক্তি পেলেই দর্শক প্রেক্ষাগৃহে হুমড়ি খেয়ে পড়তেন। একপর্যায়ে শাবনূরের সঙ্গে বিবাহিত সালমানের সম্পর্ক নিয়ে গুঞ্জন ওঠে। এর পর স্ত্রী সামিরার সঙ্গে কলহ দেখা দেয় সালমানের।

১৯৯৬ সালের ৬ সেপ্টেম্বর সালমানের মৃত্যু হয়। সেই থেকে তার মৃত্যু নিয়ে ধোঁয়াশা ছিল। হত্যা নাকি আত্মহত্যা? প্রায় দুই যুগ পর তদন্তকারী সংস্থা পিবিআই জানাল, সালমানকে হত্যা করা হয়নি, তিনি আত্মহত্যা করেছিলেন। এই প্রতিবেদন নিয়ে মিশ্র প্রতিক্রিয়া দেখা দিয়েছে।

সালমানের সাবেক স্ত্রী সামিরা এই প্রতিবেদন মেনে নিয়েছেন। এই প্রতিবেদন প্রত্যাখ্যান করেছেন তার মা নীলা চৌধুরী। চিত্রনায়িকা শাবনূর অভিযোগ করেছেন, তাকে অহেতুক এ ঘটনায় ফাঁসানোর ষড়যন্ত্র চলছে।

এ বিষয়ে প্রথমবারের মত কথা বলেছেন চিত্রনায়িকা মৌসুমী। এ নায়িকার সঙ্গে কেয়ামত থেকে কেয়ামত ছবি করার মধ্য দিয়েই চলচ্চিত্রে সালমানের ক্যারিয়ার শুরু হয়েছিল।

চিত্রনায়িকা মৌসুমী অবশ্য পিবিআইয়ের তদন্ত প্রতিবেদন নিয়ে কোনো মন্তব্য করতে রাজি হননি। তিনি বলেন, এসব নিয়ে কথা বলে আর লাভ নেই। আমরা তো আর সালমানকে ফিরে পাব না। পিবিআইয়ের তদন্ত প্রতিবেদন নিয়ে আমি কোনো কথা বলতে চাই না। শুধু বলব- সালমান আমাদের হৃদয়ে ছিলেন এবং থাকবেন। আমরা সালমানকে এত দ্রুত হারাতে চাইনি। সে আমার ভালো বন্ধু ছিল। তার অকালে চলে যাওয়া কিছুতেই মেনে নিতে পারছি না। এতদিন পর এ নিয়ে ঘাঁটাঘাঁটি করে কি কোনো ফল আসবে?

মৌসুমী বলেন, পিবিআইয়ের প্রতিবেদনে আরেকজন অভিনয়শিল্পীকে নিয়েও অনেক কথা বলা হচ্ছে, সেটি নিয়েও কিছু বলতে চাই না।

উল্লেখ্য, ১৯৯২ সালের ২০ ডিসেম্বর সালমান শাহর সঙ্গে সামিরা হকের বিয়ে হয়। ১৯৯৬ সালের ৬ সেপ্টেম্বর রাজধানীর ইস্কাটন রোডে নিজের বাসা থেকে সালমান শাহর লাশ উদ্ধার করা হয়।

পিবিআইয়ের প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, সালমান শাহকে হত্যা করা হয়নি। তিনি আত্মহত্যা করেছেন। তার আত্মহত্যার পেছনে ৫টি কারণ খুঁজে পেয়েছে পিবিআই। সেগুলো হচ্ছে-

১. সালমান শাহ ও চিত্রনায়িকা শাবনূরের অতিরিক্ত অন্তরঙ্গতা;

২. স্ত্রী সামিরার সঙ্গে সালমানের দাম্পত্য কলহ;

৩. সালমান শাহর মাত্রাতিরিক্ত আবেগপ্রবণতা এবং একাধিকবার আত্মঘাতী হওয়া বা আত্মহত্যার চেষ্টা করা;

৪. মায়ের প্রতি অসীম ভালোবাসা এবং জটিল সম্পর্কের বেড়াজালে পড়ে পুঞ্জিভূত অভিমানে রূপ নেয়া;

৫. সন্তান না হওয়ায় দাম্পত্য জীবনের অপূর্ণতা।

প্রায় ৬০০ পৃষ্ঠার প্রতিবেদন তুলে ধরে পিবিআইপ্রধান বনজ কুমার মজুমদার বলেন, পিবিআই কর্তৃক তদন্তকালে ঘটনার সময় উপস্থিত ও ঘটনায় সংশ্লিষ্ট ৪৪ সাক্ষীর জবানবন্দি ফৌজদারি কার্যবিধির ১৬১ ধারায় লিপিবদ্ধ করা হয়। ১০ সাক্ষীর সাক্ষ্য ফৌজদারি কার্যবিধির ১৬৪ ধারায় লিপিবদ্ধ করা হয়। পাশাপাশি ঘটনা সংশ্লিষ্ট আলামত জব্দ করা হয়। এসব বিষয় পর্যালোচনায় দেখা যাচ্ছে, চিত্রনায়ক সালমান শাহ পারিবারিক কলহের জেরে আত্মহত্যা করেছেন। হত্যার অভিযোগের কোনো প্রমাণ মেলেনি।

‘হায়েনা এক্সপ্রেস’ : নয়টি গানে একটি গল্প

বিনোদন বাজার ॥ অ্যালবাম প্রকাশের মধ্য দিয়ে পথচলা শুরু করতে যাচ্ছে ব্যান্ড ‘সোনার বাংলা সার্কাস’। শনিবার  প্রকাশ পেয়েছে তাদের প্রথম অ্যালবাম ‘হায়েনা এক্সপ্রেস’। মোট ৯টি গান নিয়ে সাজানো হয়েছে তাদের এই অ্যালবাম। গানগুলো হল ‘হায়েনা এক্সপ্রেস’, ‘মৃত্যু উৎপাদন কারখানা’, ‘অন্ধদেয়াল’, ‘সূর্যের অন্ধকার’, ‘আমার নাম অসুখ’, ‘ক্রমশ’, ‘পারফিউমের ফেলে দেয়া বোতল’, ‘আত্মহত্যার গান’, ও ‘এপিটাফ’। প্রকাশিত নয়টি গানে একটি গল্প বলতে চেয়েছে ব্যান্ডটি। জন্ম থেকে মৃত্যু পর্যন্ত কোনো এক মানুষের জীবনকে ধরতে চেয়েছে তাদের গানে।

গানগুলো প্রসঙ্গে ব্যান্ডের ভোকালিস্ট প্রবর রিপন বলেন, ‘একটা জার্নি রয়েছে পুরো অ্যালবামে। হায়েনা এক্সপ্রেসের মাধ্যমে কেউ একজন জন্ম নিয়ে পৃথিবীতে আসে। এসে সে হায়েনা এক্সপ্রেসে উঠে। ‘হায়েনা এক্সপ্রেস’ বলতে সময় বা মানুষের গতি এই জিনিসটাকে আমরা বুঝাতে চেয়েছি। যেমন আমরা জন্মগ্রহণ করি-তারপর পড়াশোনা করি, এক সময় আমরা দাসত্বমূলক কাজের ভিতর ঢুকি। সেভাবে মৃত্যু উৎপাদন কারখানায় সে ঢুকে। তারপর বুঝতে পারে যে আসলে এখানকার মানুষ না। তখন সে অন্ধ দেয়াল গানের মাধ্যমে ভেঙে বের হয়ে আসে। এসে সে মানব প্রেম বা যেকোনো প্রেমের দিকে যায়; তারপর সে আসলে টের পায়, যা অবস্থা এটাও ঠিক তার জন্য যাচ্ছে না। তার ভেতরে মজ্জাগত একটা অসুখ তাকে খোঁচা দেয় অনেক বেশি। সবকিছু যেমন স্বাভাবিক হওয়ার ছিল তেমনটা হয় না। তারপর পৃথিবীর সমস্তকিছু নিয়ে বিরক্ত শুরু হয় ‘ক্রমশ’ গান দিয়ে। এরপর সে জাহাজে চড়ে একটা দ্বীপে যায়, যে গানটা হল ‘পারফিউমের ফেলে দেয়া বোতল’। এভাবে ‘এপিটাফ’ দিয়ে সমস্ত ঘটনার শেষ হয়।’

‘মূলত অ্যালবামটি হল কনসেপ্টচুয়াল। পুরো একটা গল্প। অ্যালবামের গানগুলো একটানা শুনলে এই অভিজ্ঞতাটা পাওয়া যাবে’- যোগ করেন তিনি। গানগুলোর লিরিক এবং সুরও করেছেন প্রবর রিপন।

অ্যালবামটি তাদের নিজস্ব ইউটিউব চ্যানেলে প্রকাশিত হবে। পাশাপাশি অ্যালবামটির গ্লোবাল ডিস্ট্রিবিউশন করছে ‘অ্যানি রেকর্ড। এই অ্যালবামের প্রচ্ছদ এঁকেছেন সোহাগ হাবীব। ব্যান্ডের লোগো করেছেন জহির উদ্দিন জুম্মন।

ব্যান্ডের লাইনআপে আছেন প্রবর রিপন (ভোকাল ও অ্যাকুয়েস্টিক গিটার), শ্বেত পান্ডুরাঙ্গা ব্লুমবার্গ (লিড গিটার), শাকিল হক (বেজ গিটার ও ব্যাক ভোকাল), সাদ চৌধুরী (কিবোর্ড ও সিন্থ) এবং দেওয়ান আনামুল হাসান রাজু (ড্রামস)। উল্লেখ্য, ‘সোনার বাংলা সার্কাস’ যাত্রা শুরু করে ২০১৮ সালে।

জয় বাংলা কনসার্ট মাতাবে নয় ব্যান্ডদল

বিনোদন বাজার ॥ আগামী ৭ মার্চ রাজধানীর আর্মি স্টেডিয়ামে ৬ষ্ঠ বারের মতো পর্দা উঠতে যাচ্ছে জয় বাংলা কনসার্টের। সেন্টার ফর রিসার্চ অ্যান্ড ইনফরমেশন (সিআরআই)-এর আয়োজনে এবারের কনসার্টে পারফর্ম করবে ৯টি ব্যান্ড। পুরো আয়োজনজুড়ে এবারো থাকবে স্বাধীন বাংলা বেতার কেন্দ্রের গান। যেগুলো পরিবেশন করবে অংশ নেওয়া ব্যান্ডগুলো। এর মধ্যে রয়েছে ভাইকিংস, লালন, ক্রিপটিক ফেইট, আর্বোভাইরাস, চিরকুট, নেমেসিস, এফ মাইনর, শূন্য এবং ফুয়াদ অ্যান্ড ফ্রেন্ডস। একই মঞ্চে একক শিল্পী হিসেবে গাইবেন মিনার ও অ্যাভয়েড রাফা।

আয়োজক সূত্রে জানা যায়, অংশ নেওয়া প্রতিটি ব্যান্ড নিজেদের গানের পাশাপাশি পরিবেশন করবে স্বাধীন বাংলা বেতার কেন্দ্রের গানগুলো। এছাড়া কনসার্টে বঙ্গবন্ধুর ৭ মার্চের ভাষণ এবং মুক্তিযুদ্ধভিত্তিক গ্রাফিক্যাল রিপ্রেজেন্টেশনসহ থাকছে নানা আয়োজন।

এতে দর্শক-শ্রোতা হিসেবে অংশ নেওয়ার জন্য শিগগিরই শুরু হবে নিবন্ধন প্রক্রিয়া। অনলাইনে নিবন্ধন করতে লাগবে জাতীয় পরিচয়পত্র, পাসপোর্ট অথবা জন্ম নিবন্ধন সনদ, মোবাইল নম্বর এবং ই-মেইল অ্যাড্রেস।

দৌলতপুরে আলু চাষে সাফল্য পেয়েছেন চাষীরা

শরীফুল ইসলাম ॥ শীতকালীন বিভিন্ন প্রকার সবজির মধ্যে আলু একটি অন্যতম অর্থকরী সবজি যা বছরের সবসময় ভোক্তাদের সবজির চাহিদা মিটিয়ে থাকে। বিগত কয়েক বছর আলু চাষ করে কৃষকরা লাভের মুখ তেমন একটা না দেখলেও এবছর আলু চাষ করে লাভবান হচ্ছেন কুষ্টিয়ার দৌলতপুরের আলু চাষীরা। এখন আলু উত্তোলনে ব্যস্ত সময় পার করছেন তারা। চলতি মৌসুমে দৌলতপুরে ১১০০ হেক্টর জমিতে আলু চাষ হয়েছে। কয়েকদফা শৈত্য প্রবাহের কারনে আলু গাছের পরিচর্যা কিছুটা বিঘিœত হওয়ার পরও আলুর ফলন ভাল হয়েছে। বিঘা প্রতি ২০ থেকে ২২ হাজার টাকা খরচ হলেও বিক্রয় হচ্ছে ৪৫ থেকে ৪৬ হাজার টাকায়। উৎপাদন খরচ বাদ দিয়ে বিঘা প্রতি লাভ হচ্ছে ২৩ থেকে ২৪ হাজার টাকা। তবে আলুর বীজের দাম বেশী পড়ায় ও উৎপাদন খরচ বেশী হওয়ায় কারও কারও লাভের অংশ কম হবে বলে জানিয়েছে। শশীধরপুর গ্রামের আলু চাষী নাসির উদ্দিন জানান, এবছর সে ৫বিঘা জমিতে আলু চাষ করেছিলো। বিঘা প্রতি তার খরচ হয়ে গড়ে ২০ টাকা করে। বর্তমান বাজার দর হিসেবে তার বিঘা প্রতি আলু বিক্রয় হবে গড়ে ৪৫ হাজার করে। তবে অন্যান্য বছরের তুলনায় এবছর আলু চাষে ফলন ভাল হয়েছে এবং আলু চাষ করে চাষীরাও লাভবান হচ্ছেন। আর আলু চাষে ভাল ফলনের জন্য কৃষি বিভাগেরও তদারকি ও পরামর্শ রয়েছে বলে জানিয়েছেন দৌলতপুর কৃষি সম্প্রসারন কর্মকর্তা সজিব আল মারুফ। কৃষকদের আলু চাষে বেশী করে উৎসাহ ও প্রণোদনা দিলে একদিকে যেমন ক্ষতিকর তামাক চাষ প্রবন এলাকা দৌলতপুরের চাষীদের তামাক চাষ থেকে মুখ ফেরানো সম্ভব, অপরদিকে অর্থকরী সবজি আলু চাষে তারা আর্থিকভাবে স্বাবলম্বী হবেন তারা।

আবারও ফেঁসে গেলেন শ্রাবন্তী চ্যাটার্জি

বিনোদন বাজার ॥ বলিউড অভিনেতা শহীদ কাপুরকে জন্মদিনের শুভেচ্ছা জানাতে গিয়ে ফের বিপদ ডেকে আনলেন চিত্রনায়িকা শ্রাবন্তী চ্যাটার্জী।

দুইবার সংসার ভাঙার পর বর্তমানে তৃতীয় সংসার করছেন পশ্চিবঙ্গের দর্শকপ্রিয় চিত্রনায়িকা শ্রাবন্তী চ্যাটার্জী।

বিয়ে নিয়ে বিভিন্ন সময় সমালোচিত হয়েছেন তিনি। মঙ্গলবার (২৫ ফেব্রুয়ারি) ছিল শহীদ কাপুরের জন্মদিন।

সেদিন টুইটারে শ্রাবন্তী তার ‘প্রথম যৌবনের ক্রাশ’কে শুভেচ্ছা জানান। সেখানে লেখেন, শুভ জন্মদিন আমার সবসময়ের ক্রাশ।’

ক্রাশ লেখার কারণেই তাকে নিয়ে সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে শুরু হয় হাসিঠাট্টা। একজন নেটিজেন তো অভিনেত্রীকে বলেই বসলেন, তাহলে পরবর্তী বিয়েটা এখনই সেরে ফেলো।

প্লাস্টিক সার্জারির ফল, বুড়িয়ে যাচ্ছেন অভিনেত্রী শ্রুতি হাসান!

বিনোদন বাজার ॥ প্লাস্টিক সার্জারির ফলে তামিল, তেলেগু ও হিন্দি ছবির জনপ্রিয় অভিনেত্রী শ্রুতি হাসান নাকি বুড়িয়ে যাচ্ছেন! সামাজিকমাধ্যমে পোস্ট করা শ্রুতির একটি ছবি দেখে এমনটিই মনে করছেন নেটিজেনরা।

গত বৃহস্পতিবার নিজের ভেরিফায়েড ইনস্টাগ্রামে ‘যে নির্জনতায় আনন্দিত সে হয় বন্য জন্তু বা দেবতা’ ক্যাপশন দিয়ে একটি ছবি পোস্ট করেন শ্রুতি হাসান। ছবিতে নায়িকাকে অনেক রুগ্ন দেখাচ্ছে। মনে হচ্ছে তিনি হতাশায় ভুগছেন।

তার এই ছবিটি দেখে নেটিজেনরা বিভিন্ন ধরনের কমেন্ট করছেন।

অনেক ফলোয়ার বলেন, প্লাস্টিক সার্জারি করিয়ে নিজেকে পাল্টে ফেলেছেন। যদিও প্লাস্টিক সার্জারির পর আপনাকে ভীষণ রোগা ও রুগ্ন বলে মনে হচ্ছে। পাশাপাশি আপনাকে বয়স্কও মনে হচ্ছে।

সুকেশ বল্লভ নামে এক ফলোয়ার শ্রুতিকে বলেন, কোনো ধরনের মেকআপ ছাড়া চেহারাই হলো আসল সৌন্দর্য। কিন্তু আপনার কী হয়েছে! আমি আপনার চোখে একাকিত্ব ও কষ্ট দেখতে পাচ্ছি। কোনো কিছু হয়তো আপনাকে প্রচুর ধকল দিচ্ছে।

তবে ভক্তদের এমন মন্তব্যে বেজায় চোটেছেন কমল হাসানের মেয়ে শ্রুতি।

শুধু তাই নয়, ভক্তদের উদ্দেশে আবার দুটি সাদাকালো ছবি পোস্ট দেন এই নায়িকা। তবে এ ছবি দুটি আগেরটির তুলনায় আরও রুগ্ন।

সেখানে শ্রুতি বলেন, এটা তার নিজের জীবন। তাই যা ইচ্ছা তাই করবেন। নিজের শরীর, জীবন, তাই তা নিয়ে কী করবেন তা কাউকে বলবেন না। শরীর ও মনে যা পরিবর্তন তিনি করবেন, তা সম্পূর্ণ নিজের ইচ্ছাতেই বলেও মন্তব্য করেন শ্রুতি।

তবে এই প্রথম কোনো অভিনেত্রী ট্রোলের মুখে পড়লেন তা নয়। এর আগে সার্জারি এবং লুক নিয়ে একাধিকবার আক্রমণের মুখে পড়েন কারিনা কাপুর খান থেকে শুরু করে ঐশ্বরিয়া রাই বচ্চন কিংবা দীপিকা পাডুকোনরা।

বার্সাকে হারানোর রাস্তা জানেন রামোস

ক্রীড়া প্রতিবেদক ॥ নিজেদের পায়ে বল ধরে রাখাটাই বার্সেলোনার মূল শক্তি বলে মনে করেন সের্হিও রামোস। লা লিগা চ্যাম্পিয়নদের চাপে রেখে তাদের পা থেকে বল কেড়ে নিতে পারলেই জয়ের রাস্তা খুলবে বলেও মনে করেন রিয়াল মাদ্রিদ অধিনায়ক। আজ রোববার বাংলাদেশ সময় রাত দুইটায় ঘরের মাঠে বার্সেলোনার মুখোমুখি হবে রিয়াল। কাম্প নউয়ে প্রথম দেখায় দুই দলের লড়াই শেষ হয়েছিল গোলশূন্য ড্রয়ে। লিগে সাম্প্রতিক সময়ে ছন্দে নেই রিয়াল। শেষ দুই ম্যাচে সেল্তা ভিগোর বিপক্ষে হোঁচট খাওয়ার পর লেভান্তের মাঠে হেরেছে জিনেদিন জিদানের দল। ২৫ ম্যাচে ৫৫ পয়েন্ট নিয়ে শীর্ষে বার্সেলোনা। সমান ম্যাচে ২ পয়েন্ট কম নিয়ে তালিকার দুইয়ে রিয়াল। বার্সেলোনাকে হারাতে পারলে ফের ওঠা যাবে লিগ টেবিলের শীর্ষে। হারলে ফিকে হয়ে যাবে শিরোপার সম্ভাবনা। চিরপ্রতিদ্বন্দ্বীদের বিপক্ষে ম্যাচটির গুরুত্ব ভালোভাবেই জানেন রামোস। “আমরা তাদের বিপক্ষে অনেকবার খেলেছি। তাই আমরা জানি তাদের কিভাবে সংকটে ফেলা যায়। বার্সেলোনা এমন একটা দল যারা নিজেদের পায়ে অনেক বেশি বল রাখে। তারা সবচেয়ে বেশি অস্বস্তিতে ভোগে যখন আপনি তাদের পা থেকে বল কেড়ে নেওয়ার চেষ্টা করেন। শুধু রিয়াল মাদ্রিদ নয়, এটা সবাই জানে।” “তাদের ওপর অনেক বেশি চাপ ধরে রাখাটা ঝুঁকিপূর্ণ। কিন্তু এটা তাদের সমস্যায় ফেলে। অতীতে এটা খুব বেশি ঘটেনি, সম্ভবত প্রতিপক্ষ দলগুলো তাদের অনেক বেশি শ্রদ্ধা করে সেই জন্য।… কিন্তু আমি মনে করি, এটাই চাবিকাঠি: মাঠে তাদের ওপর অনেক বেশি চাপ ধরে রাখা এবং তাদের পা থেকে বল কেড়ে নেওয়ার চেষ্টা করা।” “তাদের আক্রমণভাগে খুব বিপজ্জনক কয়েকজন খেলোয়াড় আছে যারা এল ক্লাসিকোতে ম্যাচের ফল নির্ধারণ করে দিতে পারে, ব্যাপারটা সবসময়ই চিন্তার। আশা করি, তেমন কিছু হবে না। আমরা প্রথম মিনিট থেকে শেষ পর্যন্ত মনোযোগ ধরে রাখতে পারব।”

 ‘ডার্বি দি ইতালিয়া’ রোনালদোর কাছে ‘এল ক্লাসিকো’

ক্রীড়া প্রতিবেদক ॥ ইউভেন্তুসে পাড়ি জমানোয় পর ‘এল ক্লাসিকো’র স্বাদ পাওয়ার সুযোগ নেই ক্রিস্তিয়ানো রোনালদোর। রিয়াল মাদ্রিদ-বার্সেলোনার দ্বৈরথের রোমাঞ্চ এই পর্তুগিজ ফরোয়ার্ড যেন নিতে চাইছেন ইন্টার মিলান-ইউভেন্তুসের ‘ডার্বি দি ইতালিয়া’ লড়াই থেকে। সেরি আয় আজ রোববার মুখোমুখি হবে ইন্টার মিলান ও ইউভেন্তুস। মিলান ও তুরিনের দুই ক্লাবের দ্বৈরথ ইতালিয়ান ডার্বি নামে পরিচিত। করোনাভাইরাসের শঙ্কায় ম্যাচটি হবে ক্লোজ ডোরে; মানে সমর্থকরা থাকবেন না গ্যালারিতে। রিয়ালের হয়ে এল ক্লাসিকোতে আলো ছড়ানো রোনালদো ইউভেন্তুসের হয়ে ডার্বি দি ইতালিয়ায় খেলতে উন্মুখ হয়ে আছেন। “এটা দারুণ একটা ম্যাচ হবেÑ রিয়াল মাদ্রিদ এবং বার্সেলোনার ম্যাচের মতোই। যে ম্যাচগুলো খেলতে ভালো লাগে, ইন্টারের বিপক্ষে ম্যাচ এর মধ্যে অন্যতম। যেমনটা ভালো লাগে এসি মিলান বা লাৎসিও বিপক্ষের ম্যাচ।” “এটা চমৎকার একটা ম্যাচ হবে এবং আমরা দারুণ একটা ম্যাচ খেলার চেষ্টা করব। সমর্থকদের অনুপস্থিতির কারণে আমরা খুশি নই কিন্তু দায়িত্ব একই থাকবেÑ জেতা এবং ভালো একটা ম্যাচ খেলা।” “স্টেডিয়ামের ভেতর সমর্থকদের না থাকাটা ভালো লাগবে না কিন্তু স্বাস্থ্য সবার আগে। যদি দরজা বন্ধ করাই সেরা সমাধান হয়, তাহলে সেটাই ঠিক।” ২৫ ম্যাচে ৬০ পয়েন্ট নিয়ে শীর্ষে রয়েছে ইউভেন্তুস। এক ম্যাচ কম খেলা ইন্টার মিলান ৫৪ পয়েন্ট নিয়ে আছে তিনে।

কিসের লজ্জা! আমি কি চোর : মাশরাফি

ক্রীড়া প্রতিবেদক ॥ ইংল্যান্ড বিশ্বকাপের পর একপ্রকার অগোচরেই ছিলেন বাংলাদেশ ওয়ানডে দলের অধিনায়ক মাশরাফি বিন মুর্তজা। দীর্ঘদিন পর আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে আবারও সাংবাদিকদের মুখোমুখি হলেন তিনি। তবে এবারের সংবাদ সম্মেলনে এসে তিক্ত অভিজ্ঞতা হলো মাশরাফির। বল হাতে মাশরাফির উইকেট না পাওয়াটা নিজের কাছে লজ্জার কিনা এমন প্রশ্নের জবাবে বিব্রত হয়ে আক্রমাত্বক উত্তর দিলেন বাংলাদেশ অধিনায়ক। আজ রোববার জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে তিন ম্যাচ সিরিজের প্রথম ওয়ানডেতে মাঠে নামবে টাইগার বাহিনী। শনিবার আন্তর্জাতিক ক্রিকেট স্টেডিয়ামে ম্যাচ পূর্ববর্তী সংবাদ সম্মেলনে আসলেন বাংলাদেশ অধিনায়ক। তবে এবারের সংবাদ সম্মেলন অন্য যেকোন বারের চেয়ে বিরক্তিকর হলো মাশরাফির জন্য। মাশরাফির কাছে এক সাংবাদিক প্রশ্ন ছুঁড়ে দিলেন, দীর্ঘদিন উইকেট না পাওয়ায় নিজের কাছে লজ্জা লাগছে কিনা? উত্তরে ক্ষেপে গিয়ে মাশরাফি বলেন, কেন? আমি কি চোর নাকি? দেশের জন্য খেলতে এসেছি। আমি তো আত্মসম্মান বিকিয়ে দিতে আসিনি। মাঠে ক্রিকেটারের খারাপ সময় আসতে পারে। একজন উইকেট নাও পেতে পারেন। তার জন্য খারাপ লাগবে। বোর্ড উইকেট না পাওয়ার জন্য আমাকে বাদ দিতে পারে। কিন্তু তার জন্য আমার লজ্জা কেন লাগবে। আমি তো লজ্জা পাওয়ার মতো কিছু করছি না।’ জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে বাংলাদেশের পারফরম্যান্স ভালো। তারপরও আটঘাট বেধে নামবেন বলে জানান মাশরাফি। এ সময় তিনি বলেন, ‘জিম্বাবুয়ের কাছেও আমরা হারতে পারি। এমন নয় যে, আমরা জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে আগে কখনো হারিনি। এমনকি যদি আমরা শেষ চার-পাঁচটা ম্যাচের দিকে তাকায় তাহলে দেখবো হারতে হারতে জিতেছি আমরা। তার মানে আমরা জিম্বাবুয়ের কাছে ওই ম্যাচে হারতে পারতাম বা তারা আমাদের হারাতে পারে।’

 

বঙ্গবন্ধু অনূর্ধ্ব-১৭ গোল্ডকাপে বরিশাল, বঙ্গমাতা গোল্ডকাপে খুলনা সেরা

ক্রীড়া প্রতিবেদক ॥ চট্টগ্রামকে হারিয়ে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান জাতীয় গোল্ডকাপ অনূর্ধ্ব-১৭ টুর্নামেন্টের চ্যাম্পিয়ন হয়েছে বরিশাল। টাইব্রেকারে ঢাকাকে হারিয়ে বঙ্গমাতা বেগম ফজিলাতুন্নেছা মুজিব গোল্ডকাপে সেরা হয়েছে খুলনার মেয়েরা। বঙ্গবন্ধু জাতীয় স্টেডিয়ামে শনিবার বালক, বালিকা দুই বিভাগের ফাইনাল অনুষ্ঠিত হয়। বালক বিভাগের ফাইনালে চট্টগ্রামকে ২-১ গোলে হারায় বরিশাল। ৪৮তম মিনিটে তৌহিদুলের গোলে চট্টগ্রাম এগিয়ে যাওয়ার পর ৬৬তম মিনিটে সমতা ফেরান রাশেদুল। নির্ধারিত সময়ের খেলা ১-১ সমতায় শেষের পর অতিরিক্ত সময়ের একাদশ মিনিটে বরিশালকে এগিয়ে নেন রাব্বী। বাকিটা সময় এ গোল ধরে রেখে জয় নিয়ে মাঠ ছাড়ে দলটি। বালিকাদের ফাইনালে নির্ধারিত ও অতিরিক্ত সময়ের খেলা ২-২ সমতায় শেষের পর ম্যাচের ভাগ্য গড়ায় টাইব্রেকারে। সেখানে ঢাকাকে ৪-৩ গোলে হারিয়ে শিরোপা নিজেদের করে নেয় খুলনার মেয়েরা। বিজয়ীদের হাতে ট্রফি তুলে দেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। দুই চ্যাম্পিয়ন দল পেয়েছে ২ লাখ টাকা করে প্রাইজমানি। বালক বিভাগে সর্বোচ্চ গোলদাতা হয়েছেন রাব্বী (১০টি)। সেরা গোলরক্ষক চট্টগ্রামের আজগর এবং টুর্নামেন্ট সেরা হয়েছেন চ্যাম্পিয়ন দলের সাইফুল ইসলাম। খুলনার উন্নতি খাতুন ১২ গোল নিয়ে বালিকা বিভাগে সর্বোচ্চ গোলদাতা ও টুর্নামেন্ট সেরা খেলোয়াড় হয়েছেন। ঢাকার সুস্মিতা পেয়েছেন সেরা গোলরক্ষকের পুরস্কার।

 

নির্দেশনায় শাহনূর, সঙ্গে আরমান পারভেজ মুরাদ

বিনোদন বাজার ॥ জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জন্ম শতবার্ষিকী উপলক্ষ্যে দুটি স্বল্পদৈর্ঘ্য চলচ্চিত্রে অভিনয় করেছেন চিত্রনায়িকা শাহনূর। একটির নাম ‘একটি বাংলাদেশ’ এবং অন্যটি ‘বঙ্গবন্ধু দ্য গ্রেট লিডার’। ‘একটি বাংলাদেশ’র গল্প ভাবনা শাহনূরের নিজের। এর সংলাপ রচনা করেছেন কমল সরকার। এটি নির্দেশনা দিয়েছেন শাহনূর নিজেই। আর এটি নির্দেশনার মধ্যদিয়েই একজন পরিচালক হিসেবে নাম লেখালেন শাহনূর।

অন্যদিকে ‘বঙ্গবন্ধু দ্য গ্রেট লিডার’র সংলাপ রচনা করেছেন কমল সরকার। নির্মাণ করেছেন তাজু কামরুল। এই স্বল্পদৈর্ঘ্য চলচ্চিত্রে শাহনূরের সহশিল্পী হিসেবে আছেন অভিনেতা আরমান পারভেজ মুরাদ। প্রথমবারের মতো নির্দেশনা প্রসঙ্গে শাহনূর বলেন, ‘আমার দীর্ঘদিনের ইচ্ছে ছিল নাটক নির্মাণ করার। কিন্তু সব মিলিয়ে আসলে ব্যাটে-বলে হয়ে উঠছিলো না। শেষ পর্যন্ত এমন একটি কাজই নিজে নির্দেশনা দিলাম যার মূল ভিত্তি আমাদের জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান। ‘একটি বাংলাদেশ’ শিরোনামের স্বল্পদৈর্ঘ্য চলচ্চিত্রটির গল্প ভাবনা অনেক আগেই আমার মাথায় এসেছিলো। জাতির জনকের জন্ম শতবার্ষিকীতে তার প্রতি গভীর শ্রদ্ধা জানিয়েই এটি নির্মিত হয়েছে।’ ‘বঙ্গবন্ধু দ্য গ্রেট লিডার’ চলচ্চিত্রে অভিনয় প্রসঙ্গে আরমান পারভেজ মুরাদ বলেন, ‘সত্যি বলতে কী বঙ্গবন্ধু সম্পর্কে বিষদ জানাতে হবে বর্তমান প্রজন্মকে। তাই এই ভাবনাকে ঘিরে এই চলচ্চিত্রের বিষয়বস্তু আমার কাছে ভালো লেগেছে। সত্যিকার অর্থেই বঙ্গবন্ধু কে, তা ভালোভাবে নতুন প্রজন্মকে জানানোর দায়িত্ব কিন্তু আমাদেরই।’

শাহনূর জানান ‘একটি বাংলাদেশ’ ও ‘বঙ্গবন্ধু দ্য গ্রেট লিডার’ তার নিজস্ব প্রযোজনা সংস্থা ‘মৌ মাল্টিমিডিয়া’র ব্যানারে নির্মিত হয়েছে।