ঝিনাইদহে ফার্মেসিতে ভ্রাম্যমান আদালতের অভিযানে জরিমানা আদায়

ঝিনাইদহ প্রতিনিধি ॥  মেয়োদোত্তীর্ণ ঔষধ ৬ মাস বা এক বছর পর্যন্ত খেলে তা স্বাস্থের জন্য কোন ক্ষতি করেনা। এটি মেডিকেল টেস্টে প্রমানিত। মেয়াদোত্তীর্ণ ঔষধ খাওয়া যাবেনা এর কোন বিধান নেই বলে জানিয়েছেন ঝিনাইদহ ঔষধ প্রশাসন অধিদপ্তরের সহকারী পরিচালক মো: নাজমুল হাসান। গতকাল বুধবার সকালে ঔষধ ফার্মেসীতে জেলা প্রশাসনের ভ্রাম্যমান আদালত পরিচালনা কালে তিনি এ কথা বলেন। তবে বিষয়টি নিয়ে ঝিনাইদহ সিভিল সার্জন ডা: সেলিনা বেগম জানান, কোনক্রমেই মেয়াদোত্তীর্ণ ঔষধ খাওয়া যাবেনা। মেয়াদ শেষ হলে ঔষধ যে উপাদান দিয়ে তৈরি হয় তার গুনগতমান নষ্ট হয়ে যায়। যা খেলে মানবস্বাস্থ্যের জন্য মারাতœক ক্ষতির কারন হতে। এমনকি পার্শ্বপ্রতিক্রিয়ায় মৃত্যু পর্যন্ত হতে পারে। কোন ঔষধের মেয়াদ কবে শেষ হবে, কতদিন গুণগতমান থাকবে তা কোম্পানীগুলো দেখেই তৈরি করে। ঔষধ প্রশাসন কর্মকর্তা কিভাবে কোন নির্দেশনায় মেয়াদোত্তীর্ণ ঔষধ খাওয়া যাবে বলেছেন সেটা আমার বোধগম্য না।  জানা যায়, প্রায় এক মাস যাবৎ জেলা শহরের বিভিন্ন ঔষধ ফার্মেসীতে পূর্বের ৫% বা ৭% কমিশনে ঔষধ বিক্রি বন্ধ করে দেয় বিক্রেতারা। পরে তারা কোম্পানীর এমআরপি রেটে বিক্রি শুরু করে যা কিনতে গিয়ে অনেকটা নাভিশ্বাস ওঠে ক্রেতাদের মধ্যে। এসব অভিযোগের প্রেক্ষিতে গতকাল বুধবার শহরের মাসুদ ফার্মা, তাজমহল, আক্তার, পান্না, নিউ সালেহা, সিদ্দিক, আলহেরাসহ প্রায় ১৫ টি ফার্মেসীতে ভ্রাম্যমান আদালত পরিচালনা করা হয়েছে। এদের মধ্যে ৩ মাসুদ ফার্মা, তাজমহল ও আক্তার ফার্মেসীতে ১২ হাজার টাকা জরিমানা করা হয়। ভ্রাম্যমান আদালত পরিচালনা করেন জেলা প্রশাসনের নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট ইরফানুল হক। এসময় ভোক্তা অধিকার সংরক্ষণ অধিদপ্তরের সহকারী পরিচালক সুচন্দন মন্ডল, জেলা ঔষধ প্রশাসন অধিদপ্তরের সহকারী পরিচালক মো: নাজমুল হাসান উপস্থিত ছিলেন। ভ্রাম্যমান আদালতের বিচারক ইরফানুল হক জানান, সরকারী নির্দেশনা না থাকলেও ফার্মেসীতে কমিশন বাদে এমআরপি রেটে ঔষধ বিক্রি হচ্ছে এমন সংবাদের ভিত্তিতে ভ্রাম্যমান আদালত পরিচালনা করা হয়। ঘটনার সত্যতা পেয়ে এবং মেয়াদোত্তীর্ণ ঔষধ রাখায় শহরের মাসুদ ফার্মাকে ২ হাজার, আক্তার ফার্মেসীকে ৫ হাজার ও তাজমহল ফার্মেসীকে ৫ হাজার টাকা জারিমানা করা হয়। সেসময় বাকিদেরকে সতর্ক করা হয়েছে ভবিষ্যতে যেন এমন অনিয়ম না করা হয়। তিনি আরো জানান, ঔষধ প্রশাসনের সহকারী পরিচালক মো: নাজমুল হাসান যে মেয়াদোত্তীর্ণ ঔষধ খাওয়া যাবে বলেছেন তা তাকে প্রমাণ করতে হবে। এদিকে ক্ষুব্ধ সাধারন মানুষ অভিযোগ করে বলেন, দীর্ঘদিন এমন ইচ্ছামত বিক্রেতারা ঔষুধ বিক্রি করে আসছে কিন্তু ঔষধ প্রশাসন কোন তদারকি করেনা। ঢাকাসহ পাশ্ববর্তি বিভিন্ন জেলায় ৫%, ৭ %, ১০ % হারে ওষূধ বিক্রি হচ্ছে কিন্তু ঝিনাইদহে এর ব্যতিক্রম। সরকারের উচিত উপর মহল থেকে এর তদারকি করা এবং যারা এর সাথে জড়িত তাদের শাস্তির আওতায় আনা। এ বিষয়ে জেলা প্রশাসক সরোজ কুমার নাথ জানান, ঔষধ প্রশাসনের সহকারী পরিচালকের মন্তব্য খতিয়ে দেখা হচ্ছে। যদি তিনি আইন না মেনে মন্তব্য করে থাকেন তবে তার বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

 

খালেদা জিয়াকে বিদেশ নিয়ে যেতে আবেদন ভাই-বোনের

ঢাকা অফিস ॥ দীর্ঘদিন ধরে কারাগারে থেকে গুরুতর অসুস্থ হয়ে পড়া বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়াকে বিদেশি নিয়ে গিয়ে চিকিৎসা দিতে চায় তার পরিবার। সাবেক এই প্রধানমন্ত্রীর সঠিক চিকিৎসা নিশ্চিত করতে তাকে বিদেশ পাঠানোর জন্য মেডিকেল বোর্ডের সুপারিশ চেয়ে বিএসএমএমইউ (বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয় হাসপাতাল) কর্তৃপক্ষকে চিঠি দিয়েছেন তার ভাই শামীম ইস্কান্দার। সাবেক প্রধানমন্ত্রীকে বিদেশে পাঠানোর জন্য তার পরিবারের পক্ষ থেকে এটাই প্রথম লিখিত আবেদন। এই আবেদন করা হয়েছে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্যের কাছে। শামীম ইস্কান্দার আবেদনে লিখেছেন, খালেদা জিয়ার দ্রুত অবনতিশীল স্বাস্থ্যের পরিপ্রেক্ষিতে যেকোনো অপূরণীয় ক্ষতি এড়াতে আধুনিক সুযোগ সুবিধা সম্বলিত বিদেশি হাসপাতালে চিকিৎসা প্রয়োজন। খালেদা জিয়ার পরিবারের পক্ষ থেকে ব্যয় বহন করে এবং তাদের দায়িত্বে উন্নত চিকিৎসার ব্যবস্থা নেয়ার ক্ষেত্রে হাসপাতাল কর্তৃপক্ষের সহযোগিতা চাওয়া হয়েছে এই আবেদনে। এই আবেদন বিবেচনা করা হবে বলে আশা করছেন খালেদা জিয়ার পরিবার। হাসপাতাল কর্তৃপক্ষের কাছে এমন আবেদন করার বিষয়ে খালেদা জিয়ার বোন সেলিমা ইসলাম বলেন, মেডিকেল বোর্ড যেন বিদেশে চিকিৎসার ব্যাপারে সরকারকে সুপারিশ করে সেজন্য তাদের এই আবেদন। ‘আবেদনে উন্নত চিকিৎসার জন্য বিদেশে নিতে চেয়েছি। আর বলেছি যে, উনাকে নি:শর্ত মুক্তি দিতে। কারণ এটা মিথ্যা মামলা। সেজন্য আমরা নিঃশর্ত মুক্তির জন্য বলেছি’-যোগ করেন সেলিমা ইসলাম। খালেদা জিয়া বিদেশ যেতে রাজি হবেন কিনা এমন প্রশ্নে সেলিমা ইসলাম বলেন, উনার সম্মতি থাকবে। উনার অবস্থা এতই খারাপ হয়ে গিয়েছে যে, ৫ মিনিটও দাঁড়িয়ে থাকতে পারছেন না। বাম হাত সম্পূর্ণ বেঁকে গেছে। ডান হাতেরও খারাপ অবস্থা। তার চোখ দিয়েও অনবরত পানি পড়ছে। পায়ে কোনো সাপোর্ট রাখতে পারছেন না। এই অবস্থায় একটা মানুষতো চিকিৎসার জন্য যেখানেই হোক যেতে চাইবে। এদিকে খালেদা জিয়ার আবেদনটি মেডিকেল বোর্ডে পাঠানো হয়েছে বলে জানিয়েছেন বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য কনক কান্তি বড়–য়া। তিনি বলেন, ইতিপূর্বে মেডিকেল বোর্ড খালেদা জিয়াকে বিদেশে নিয়ে চিকিৎসার কোনো সুপারিশ করেনি। উনাদের আবেদন মেডিকেল বোর্ডকে দেব। বোর্ড পরীক্ষা করে কি সাজেশন দেয়, সেটা আমরা পরে জানাব। উল্লেখ্য, মঙ্গলবার বিকাল সাড়ে ৩টায় খালেদা জিয়ার সঙ্গে সাক্ষাৎ করতে বিএসএমএমইউ হাসপাতালে যান পাঁচ স্বজন সেজো বোন সেলিমা ইসলাম, ছোট ভাইয়ের স্ত্রী কানিজ ফাতিমা, তার ছেলে অভিক এস্কান্দার, তারেক রহমানের স্ত্রীর বড় বোন শাহিনা জামান খান বিন্দু ও কোকোর শাশুড়ি ফাতিমা রেজা। প্রায় ঘণ্টাখানেক সেখানে অবস্থান করেন তারা।

রোহিঙ্গা গণহত্যার বিচার

আইসিজে’র মামলায় গাম্বিয়াকে সহায়তা দিয়ে যাবে ওআইসি

ঢাকা অফিস ॥ আন্তর্জাতিক বিচার আদালতে (আইসিজে) মিয়ানমারের বিরুদ্ধে রোহিঙ্গা গণহত্যার মামলায় গাম্বিয়াকে সব ধরনের সহায়তা দেওয়ার অঙ্গীকার পুনরায় ব্যক্ত করেছে অর্গানাইজেশন অফ ইসলামিক কোঅপারেশন (ওআইসি)। এজন্য তহবিল সংগ্রহের সিদ্ধান্ত নিয়েছে সংস্থাটি। আগামী এপ্রিলে অনুষ্ঠেয় ওআইসি’র পররাষ্ট্রমন্ত্রী পর্যায়ের সম্মেলনে এই তহবিল সংগ্রহ করা হবে। মঙ্গলবার সৌদি আরবের জেদ্দায় অনুষ্ঠিত ওআইসি’র জ্যেষ্ঠ কর্মকর্তাদের বৈঠকে এই সিদ্ধান্ত হয়। পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের এক প্রেস বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য জানানো হয়েছে। বৈঠকে বাংলাদেশের পক্ষে নেতৃত্ব দেন পররাষ্ট্র সচিব মাসুদ বিন মোমেন। এপ্রিলে পররাষ্ট্রমন্ত্রী পর্যায়ের সম্মেলন অনুষ্ঠিত হবে নাইজারে এবং সেটির প্রস্তুতির এই বৈঠকে আয়োজন করা হয়। বৈঠকে গত ২৩ জানুয়ারি আন্তর্জাতিক বিচারিক আদালতের অন্তর্বর্তী সিদ্ধান্তকে স্বাগত জানিয়ে বলা হয়, গাম্বিয়াকে সহায়তা করার জন্য বাংলাদেশের প্রস্তাবে সমর্থন আছে ইসলামি দেশগুলোর। এছাড়া তহবিল সংগ্রহের জন্য ইতিমধ্যে ওআইসি সচিবালয় একটি অ্যাকাউন্ট খুলেছে, আগ্রহী রাষ্ট্রগুলো ওই অ্যাকাউন্টে তাদের সহায়তার অর্থ জমা দিতে পারবে। এছাড়া বৈঠকে সম্প্রতি ট্রাম্প প্রশাসনের মধ্যপ্রাচ্য শান্তি পরিকল্পনার বিষয়ে একটি খসড়া প্রস্তাব নিয়ে আলোচনা হয়েছে।

করোনাভাইরাস নিয়ে ডোনাল্ড ট্রাম্পের ‘গরম তত্ত্ব’

ঢাকা অফিস ॥ বিশ্বজুড়ে ছড়িয়ে পড়া করোনাভাইরাসের প্রতিষেধক আবিষ্কারে বিজ্ঞানীরা দিনরাত মাথার ঘাম পায়ে ফেলছেন। এর মধ্যেই মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প দাবি করেছেন, গ্রীষ্মকাল এলে করোনাভাইরাস এমনিতেই দূর হয়ে যাবে। সোমবার হোয়াইট হাউসে গভর্নরদের সঙ্গে আলাপকালে ট্রাম্প জানান, চলতি সপ্তাহে তিনি চীনা প্রেসিডেন্ট শি জিনপিংকে ফোনে ‘গরমকাল আসলেই ভাইরাস চলে যাবে’ বলে আশ্বস্ত করেছেন। মার্কিন প্রেসিডেন্ট বলেন, ‘তাপ এ ধরনের ভাইরাস মেরে ফেলতে পারে। এটা একটা ভালো দিক।’ খবর সিএনএনের। মূলত ট্রাম্প তার ‘করোনাভাইরাসের গরম তত্ত্ব’ প্রথমবার প্রকাশ করেছিলেন গত সপ্তাহের এক টুইটে। তার দাবি, এপ্রিল মাসের দিকে গরম আসার সঙ্গে সঙ্গে করোনাভাইরাসের প্রাদুর্ভাব চলে যাবে বলে মনে করছেন অনেকেই। তবে মার্কিন প্রেসিডেন্টের এমন ধারণার সঙ্গে একমত নন বিশেষজ্ঞরা। টেক্সাসের বেলর কলেজ অব মেডিসিনের ন্যাশনাল স্কুল অব ট্রপিক্যাল মেডিসিন বিভাগের ডিন ড. পিটার হোটেজ বলেন, বসন্ত-গ্রীষ্মের সময় এসব (করোনাভাইরাস সংক্রমণ) নেমে যাবে এটা মেনে নেয়া হবে খামখেয়ালি ব্যাপার। ঋতুভিত্তিক বিষয়টি আমরা ঠিক বুঝি না। ভ্যান্ডারবিল্ট ইউনিভার্সিটি মেডিকেল সেন্টারের সংক্রামক রোগ বিশেষজ্ঞ ড. উইলিয়াম শ্যাফনার বলেন, তার (ট্রাম্প) আশাই আমাদের আমাদের আশা। তবে এটা (করোনাভাইরাস) সেভাবে (গরমকালে চলে যাবে) কাজ করবে এ ধরনের কোনো জ্ঞান আমাদের নেই। গত ৩১ ডিসেম্বর চীনের হুবেই প্রদেশের উহান শহরে শনাক্ত হওয়ার পর থেকে করোনাভাইরাসে প্রতিদিনই বাড়ছে আক্রান্তের সংখ্যা। চীনে এ পর্যন্ত ৪২ হাজারেরও বেশি মানুষ আক্রান্ত হয়েছেন, মৃতের সংখ্যাও হাজার ছাড়িয়েছে। তবে প্রেসিডেন্ট ট্রাম্পের মতে, করোনাভাইরাস সংক্রমণ প্রতিরোধে ‘খুব ভালো’ কাজ করছে চীন।

দৌলতপুরে আমার সংবাদ পত্রিকার প্রতিষ্ঠা বার্ষিকী পালন

দৌলতপর প্রতিনিধি ॥ কুষ্টিয়ার দৌলতপুরে দৈনিক আমার সংবাদ পত্রিকার প্রতিষ্ঠা বার্ষিকী পালন করা হয়েছে। এ উপলক্ষ্যে গতকাল বুধবার দুপুর ১২টায় দৌলতপুর প্রেসক্লাব মিলনায়তনে আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়। দৈনিক আমার সংবাদ পত্রিকার কুষ্টিয়া প্রতিনিধি মো. নজরুল ইসলাম মুকুলের সভাপতিত্বে আলোচনা সভায় প্রধান অতিথি ছিলেন দৌলতপুর উপজেলা চেয়ারম্যান এ্যাড. এজাজ আহমেদ মামুন। বিশেষ অতিথি ছিলেন দৌলতপুর উপজেলা নির্বাহী অফিসার শারমিন আক্তার ও দৌলতপুর কলেজের অধ্যক্ষ মো. ছাদিকুজ্জামান খান। এসময় উপস্থিত ছিলেন দৌলতপুর কলেজের বাংলা বিভাগের সহকারী অধ্যাপক সরকার আমিরুল ইসলাম ও দৈনিক আমার সংবাদ পত্রিকার দৌলতপুর প্রতিনিধি মো. মিজানুর রহমানসহ দৌলতপুর প্রেসক্লাবের সদস্যবৃন্দ, আমন্ত্রিত সাংবাদিক ও সুধীজন। আলোচনা সভায় প্রধান অতিথি ও বিশেষ অতিথি তাদের বক্তব্যে হলুদ সাংবাদিকতা পরিহার করে বস্তুনিষ্ঠ সংবাদ পরিবেশনে সকল স্তরের সাংবাদিকদের প্রতি আহ্বান জানান। সেই সাথে দৈনিক আমার সংবাদ পত্রিকার ৮ম বর্ষে পদার্পন করায় পত্রিকার সাফল্য কামনা করেন অতিথিবৃন্দ। আলোচনা সভা পরিচালনা করেন দৌলতপুর প্রেসক্লাবের সাধারণ সম্পাদক শরীফুল ইসলাম। আলোচনা সভা শেষে আনুষ্ঠানিকভাবে কেক কাটেন অতিথিবৃন্দ।

নির্বিচার হত্যাকান্ড

ক্ষমা চাইলেন থাই সেনাপ্রধান

ঢাকা অফিস ॥ শৃঙ্খলা লঙ্ঘন করে উন্মত্ত হয়ে ওঠা এক সৈন্যের নির্বিচার গুলিতে ২৯ জনের প্রাণ যাওয়া ও ৫৭ জন আহত হওয়ার ঘটনায় ক্ষমা চেয়েছেন থাইল্যান্ডের সেনাবাহিনী প্রধান। মঙ্গলবার ৯০ মিনিটের সংবাদ সম্মেলনে সেনাবাহিনী প্রধান হিসেবে ওই সৈন্যের কৃতকর্মের সব দায় নিয়ে দেশবাসীর কাছে ক্ষমা প্রার্থনা করেন তিনি, জানিয়েছে বার্তা সংস্থা রয়টার্স। শনিবার থেকে শুরু করে রোববার সকালে নিরাপত্তা বাহিনীর গুলিতে নিহত হওয়ার আগ পর্যন্ত জাক্রাপান্থ থম্মা নামের সেনাবাহিনীর ওই সার্জেন্ট মেজরের ১৯ ঘণ্টা ধরে চালানো তান্ডবে স্তম্ভিত হয়ে পড়ে পুরো থাইল্যান্ড। সেনাপ্রধান জেনারেল আপিরাত কংসোমপোং বলেন, “আমি, সেনাবাহিনীর প্রধান হিসেবে, ক্ষমা চাইছি আর সেনাবাহিনীর এক কর্মীর ঘটানো এ ঘটনা নিয়ে কতোটা দুঃখিত তা বলছি। “যে মুহূর্তে অপরাধী ট্রিগার টেনে হত্যাকান্ড ঘটালো, সেই মুহূর্ত থেকে সে অপরাধী হলো আর  সৈন্য থাকলো না।” মাঝে মাঝে চোখের পানি মুছতে মুছতে আপিরাত জানান, সেনাবাহিনী সব ক্ষতিগ্রস্তদের এবং তাদের পরিবারকে ক্ষতিপূরণ দিয়ে সহায়তা করবে। ব্যবসায়িক বিরোধের জের ধরে শনিবার সকাল থেকে হত্যাকান্ড শুরু করেছিলেন ৩২ বছর বয়সী সার্জেন্ট মেজরের থম্মা। প্রথমে একটি বাড়িতে নিজের কমান্ডিং অফিসার ও তার শাশুড়িকে গুলি করে মারেন। সেখান থেকে গাড়ি নিয়ে নিজের সামরিক ঘাঁটিতে যান, সেখানে এক রক্ষীকে আহত করে আরও অ্যাসল্টা রাইফেল ও প্রচুর গুলি নিয়ে ফেরার পথে এক বৌদ্ধ মন্দিরে গুলিবর্ষণ করেন। এরপর নাখম রাচসিমা শহরের কেন্দ্রস্থলে টার্মিনাল টোয়েন্টিওয়ান বিপনীবিতানে গিয়ে শপিংয়ে আসা লোকজনের ওপর নির্বিচার গুলি ছুড়েন। এই বিপনীবিতানেই পরবর্তী ১২ ঘণ্টারও বেশি সময়ে ধরে অবস্থান করে মাঝে মাঝে গুলি ছুড়ে চারদিকে ঘিরে থাকা পুলিশ ও সেনাবাহিনীকে ঠেকিয়ে রাখেন। পরদিন সকালে নিরাপত্তা বাহিনীর গুলিতে থম্মা নিহত হন। জেনারেল আরিপাত জানান, সামরিক বাহিনী নিহত কমান্ডিং অফিসার কর্নেল অনন্তরথ ক্রাসে (৪৮) ও জমি নিয়ে ওই চুক্তি, যা অনন্তরথের শাশুড়ি আনং মিচানের (৬৩) মধ্যস্থতায় হয়েছিল বলে মনে করা হচ্ছে, তদন্ত করে দেখবে। জমি নিয়ে ওই চুক্তিতে কমান্ডিং অফিসার সুযোগ নেন এবং অর্থ নিয়ে দেওয়া ‘প্রতিশ্র“তি ভঙ্গ করেন’ বলে জানান তিনি। এই ঘটনার সঙ্গে আর কারা জড়িত আছে কর্তৃপক্ষ তাদের খুঁজে বের করবে বলেও জানান তিনি। সেনাবাহিনীর সদস্যরা যেন সরাসরি চিফের কাছে অভিযোগ জানাতে পারে তার জন্য নতুন একটি যোগাযোগ লাইন চালু করারও প্রতিশ্র“তি দেন তিনি। অক্টোবরে তার অবসরে যাওয়ার আগেই সেনাবাহিনীর কর্মীদের জন্য পরিস্থিতি সুন্দর করা তার মিশন বলে জানান তিনি। আপিরাত বলেন, “থাইল্যান্ডের কোনো লোক এ ঘটনার পুনারাবৃত্তি চায় বলে আমার মনে হয় না, তাই অনুগ্রহ করে সেনাবাহিনীকে দায়ী ও সৈন্যদের ভর্ৎসনা করবেন না। আপনারা যদি কাউকে দোষী করতে চান, তাহলে জেনারেল আপিরাত কংসোমপোংকে দায়ী করবেন, কারণ আমিই সেনাবাহিনীর প্রধান।”

খালেদা জিয়ার জীবন রক্ষাই এখন মুখ্য – ফখরুল

ঢাকা অফিস ॥ বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর বলেছেন, কারাগারে থাকা তাদের অসুস্থ নেত্রী খালেদা জিয়ার ‘জীবন রক্ষা করাই’ এখন দলের কাছে ‘মুখ্য’। বুধবার ঢাকার নয়া পল্টনে বিএনপির যৌথ সভা শেষে এক সংবাদ ব্রিফিয়ে সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে মির্জা ফখরুলের এই উত্তর আসে। তিনি বলেন, “আমাদের কাছে, জনগণের কাছে এখন মুখ্য বিষয়টা হচ্ছে যে, ম্যাডামের জীবনকে রক্ষা করা। কারণ এরা খুব সুপরিকল্পিতভাবে ম্যাডামকে হত্যার দিকে নিয়ে যাচ্ছে। “আমরা তাকে মুক্ত করতে চাই, তার জীবনকে বাঁচাতে চাই, তাকে সুস্থ করে জনগণের মধ্যে নিয়ে আসতে চাই। আমরা জনগণের কাছে যাচ্ছি, তাদের সঙ্গে নিয়ে আমরা দেশনেত্রীকে মুক্ত করার চেষ্টা করব- এখন রাজনৈতিক দল হিসেবে এটাই আমাদের কাজ।” দুর্নীতির দুই মামলায় ১৭ বছরের কারাদন্ডে দন্ডিত বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়াকে গত বছরের ১ এপ্রিল থেকে চিকিৎসার জন্য বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয় হাসপাতালে রাখা হয়েছে। মঙ্গলবার হাসাপাতালে গিয়ে তাকে দেখে আসার পর তার বোন সেলিমা ইসলাম সাংবাদিকদের বলেন, মানবিক দিক বিবেচনা করে তাকে খালেদা জিয়াকে মুক্তি বা জামিন দেওয়া উচিত। “আমাদের আবেদন, তাকে মুক্তি দেওয়া হোক। অন্তত উন্নত চিকিৎসাটুকু করতে পারি যেন- এটাই আমাদের একমাত্র আবেদন। খালেদা জিয়ার প্যারোলের জন্য তার পরিবার আবেদন করছে বলে যে গুঞ্জন রয়েছে- সে বিষয়ে প্রশ্ন করলে বিএনপি মহাসচিব বুধবার বলেন, “এটা (প্যারোল) সম্পর্কে আমরা ঠিক বলতে পারব না। কারণ এটা আমরা করিনি। তার পরিবার থেকে প্যারোলের আবেদন করা হয়েছে কিনা সেটাও আমাদের জানা নেই।” খালেদা জিয়ার মুক্তির দাবিতে পূর্বঘোষিত দেশব্যাপী বিক্ষোভ মিছিলের অংশ হিসেবে শনিবার ঢাকায় কেন্দ্রীয়ভাবে মিছিল হবে বেলা ২টায়। নয়া পল্টনে দলের কেন্দ্রীয় কার্যালয়ের সামনে থেকে শুরু হয়ে জাতীয় প্রেস ক্লাবের সামনে গিয়ে শেষ হবে মিছিলটি। ব্রিফিংয়ে মির্জা ফখরুল বলেন, “আমরা তার (খালেদা জিয়া) মুক্তির জন্য আইনের সবগুলো বিষয় চেষ্টা করেছি, এখনো করে যাচ্ছি আইনগতভাবে। আমরা তো সব সময় দাবি জানাচ্ছি, আপনাদের (গণমাধ্যম) মাধ্যমেও জানাচ্ছি, আমরা হোম মিনিস্টারের সঙ্গে কথা বলেছি, পার্লামেন্টেও জানানো হয়েছে। এখন পুরো বিষয়টাই সরকারের হাতে। দ্য বল ইজ ইন দেয়ার কোর্ট।” খালেদা জিয়াকে ‘শুধুমাত্র রাজনৈতিক প্রতিহিংসা থেকে জামিন না দিয়ে আটক করে রাখা হয়েছে’ বলেও অভিযোগ করেন মির্জা ফখরুল। তিনি বলেন, “আমরা একটা জিনিস খুব স্পষ্ট করে বলেছি যে, এটা আইনের বিষয় নয়। তাকে বেআইনিভাবে আটক করে রাখা হয়েছে, রাজনৈতিক উদ্দেশ্যে তাকে আটক করে রাখা হয়েছে। সুতরাং সিদ্ধান্তটা রাজনৈতিক হতে হবে, অর্থাৎ দখলদার সরকারকে সিদ্ধান্ত নিতে হবে- দেশনেত্রীকে জনগণের ইচ্ছার বিরুদ্ধে আটক করে রাখবেন, না সুস্থ পরিবেশ সৃষ্টি করার জন্য, গণতন্ত্র ফিরিয়ে আনার জন্য, পরিবেশ তৈরি করার জন্য তাকে আপনারা মুক্তি দেবেন।” সবাইকে ১৫ ফেব্র“য়ারির বিক্ষোভ মিছিলে অংশ নেওয়ার আহ্বান জানিয়ে বিএনপি মহাসচিব বলেন, “জনগণের কাছে আমাদের আবেদন থাকবে, এই ধরনের অন্যায়, এই ধরনের বেআইনি কাজ, এই ধরনের রাজনীতিকে ধবংস করে দেওয়ার যে কৌশল- সেগুলোকে নস্যাৎ করে দেওয়ার জন্য সামনে এগিয়ে আসতে হবে। জনগণের সম্মিলিত ঐক্যের মধ্য দিয়ে, তাদের সোচ্চার হওয়ার মধ্য দিয়েই এ ধরনের নির্যাতন-নিপীড়ন-অন্যায়কে আমরা পরাজিত করতে সক্ষম হব বলে আমি বিশ্বাস করি।” মির্জা ফখরুলের সভাপতিত্বে যৌথ সভায় বিএনপির শামসুজ্জামান দুদু, রুহুল কবির রিজভী, সৈয়দ মোয়াজ্জেম হোসেন আলাল, খায়রুল কবির খোকন, হাবিব উন নবী খান সোহেল, মীর সরফত আলী সপু, আবদুস সালাম আজাদ, তাইফুল ইসলাম টিপু, মুনির হোসেন, বেলাল আহমেদ, ঢাকা জেলার দেওয়ান মো. সালাউদ্দিন, খন্দকার আবু আশফাক, নারায়ণগঞ্জ এটিএম কামাল, মামুন মাহমুদ, খন্দকার আবু জাফর, গাজীপুরের ছাইয়েদুল আলম বাবুল, শওকত হোসেন সরকার, সোহরাবউদ্দিন, মজিবুর রহমান, মানিকগঞ্জের জামিলুর রশীদ খান, এসএ জিন্নাহ কবির, টাঙ্গাইলের সাইদুল হক ছাদু, ফরহাদ রেজা, হান্নান মিয়া হান্নু, মুন্সিগঞ্জের কামরুজ্জামান রতন উপস্থিত ছিলেন। অঙ্গসংগঠনের নেতাদের মধ্যে মহানগরের আহসানউল্লাহ হাসান, এবিএম আবদুর রাজ্জাক মহিলা দলের আফরোজা আব্বাস, সুলতানা আহমেদ, বিএনপির মুক্তিযোদ্ধা দলের সাদেক আহমেদ খান, স্বেচ্ছাসেবক দলের শফিউল বারী বাবু, আবুল কাদের ভুঁইয়া জুয়েল, শ্রমিক দলের আনোয়ার হোসেন, মোস্তাফিজুল করীম মজুমদার, উলামা দলের শাহ নেছারুল হক, নজরুল ইসলাম তালুকদার, কৃষক দলের হাসান জাফির তুহিন, মৎস্যজীবী দলের রফিকুল ইসলাম মাহতাব, আবদুর রহিম, তাঁতী দলের আবুল কালাম আজাদ, জাসাসের জাকির হোসেন রোকন, ছাত্রদলের আবদুস সাত্তার পাটোয়ারী উপস্থিত ছিলেন।

গাংনীতে সংখ্যালঘু যুবতি ধর্ষণের অভিযোগে ইটভাটা মালিক আটক 

গাংনী প্রতিনিধি ॥ মেহেরপুরের গাংনী উপজেলার ধানখোলা ইউনিয়নের জুগিন্দা গ্রামে বিয়ের প্রলোভন  দেখিয়ে সংখ্যালঘু (খ্রীস্টান) এক যুবতিকে ৫ বছর যাবত ধর্ষণের অভিযোগে মফিজুল ইসলাম নামের এক ইটভাটা মালিক ও ঠিকাদারের বিরুদ্ধে মামলা করা হয়েছে। অভিযুক্ত মফিজুল জুগিন্দা গ্রামের সাহাদত আলীর ছেলে। এ ঘটনায় মফিজুলকে আটক করে পুলিশ। মঙ্গলবার দিবাগত রাতে মফিজুল ইসলমকে মেহেরপুর শহর থেকে  গাংনী থানা পুলিশ আটক করে। জানা যায়, ধর্ষিত ওই যুবতি বাদি হয়ে মঙ্গলবার বিকেলে গাংনী থানায় মফিজুল ইসলামের নামে একটি ধর্ষণ মামলা দায়ের করেন। এ ঘটনায় অভিযুক্ত মফিজুল ইসলামকে আটক করে পুলিশ। অভিযোগ সূত্রে জানা যায়, দারিদ্রতার কারণে মফিজুল ইসলামের ইট ভাটায় ধর্ষিতার পিতা শ্রমিক হিসেবে দীর্ঘদিন বছর যাবত কাজ করে আসছিলেন। মালিক শ্রমিকের সম্পর্কের কারণে মফিজুল ইসলাম প্রতিনিয়ত ওই যুবতির বাড়িতে যাতায়াত করতো। এক পর্যায়ে মফিজুল ওই যুবতিকে বিয়ের প্রলোভন দেখিয়ে গত ৪ বছর যাবত ধর্ষণ করে আসছিলেন। বিয়ের জন্য ধর্ষিতা যুবতি মফিজুলকে দাবি করলে সে প্রাণনাশের হুমকি প্রদান করে। একারণে ধর্ষিতা গত মঙ্গলবার গাংনী থানায় একটি ধর্ষণ মামলা দায়ের করেন। মামলা যার- নং ১৩, তাং- ১১/০২/২০২০ইং । গাংনী থানার ওসি ওবাইদুর রহমান জানান,মামলার পরই মফিজুল ইসলামকে আটক করা হয়েছে। গতকাল বুধবার তাকে মেহেরপুর আদালতের মাধ্যমে জেল-হাজতে প্রেরণ করা হয়েছে।

ভেড়ামারায় এগারজন’র উদ্যোগে মুজিববর্ষের লগো সমৃদ্ধ কোট পিন প্রদান

আল-মাহাদী ॥ কুষ্টিয়ার ভেড়ামারায় দৈনিক খোলা কাগজ পাঠক ফোরাম এগারজন’র ৫ম মাসিক সমন্বয় সভা মঙ্গলবার রাত সাড়ে ৯টায় ভেড়ামারা গোডাউন মোড়ে অবস্থিত হোমিও শেফা’র প্রোঃ ডাঃ মোহাঃ আসমান আলী’র চেম্বারে অনুষ্ঠিত হয়। এগারজন কমিটি’র সভাপতি মোঃ রফিকুল ইসলামের সভাপতিত্বে সভায় উপস্থিত ছিলেন, কমিটি’র প্রধান সমন্বয়কারী ভেড়ামারা প্রেসক্লাবের যুগ্ন আহবায়ক ও খোলা কাগজের ভেড়ামারা উপজেলা প্রতিনিধি মোঃ আবু ওবাইদা-আল-মাহাদী, এগারজন কমিটি’র উপদেষ্টা মোহাঃ আসমান আলী, সহ-সভাপতি মোঃ সামসুল হক, কোষাধ্যক্ষ মোঃ আতিয়ার রহমান (শাইজী), দপ্তর সম্পাদক মোঃ হাবিবুর রহমান, প্রচার ও প্রকাশনা  সম্পাদক মোঃ শাহিনুর রহমান শাহিন, কর্মসূচী বিষয়ক সম্পাদক শেখ রাসেল, নির্বাহী সদস্য মোঃ জাহিদ হাসান, মোঃ আব্দুর রহমান সোহাগ, মাসুদ রানা, ভেড়ামারা আলিম মাদ্রাসার অধ্যক্ষ মোঃ এসকেন্দার আলী, ভেড়ামারা কলেজের প্রভাষক আব্দুস সামাদ, ভেড়ামারা উপজেলা প্রধান শিক্ষক সমিতি’র সভাপতি জুনিয়াদহ মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক মোঃ মোয়াজ্জেম হোসেন, হাজী ওয়াজেদ আলী মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক আব্দুল হাই সিদ্দিকী, ধরমপুর মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক মোঃ গোলাম মোস্তফা ও সহকারী শিক্ষক জাহাঙ্গীর হোসেন। পরে উপস্থিত সদস্যদেরকে মুজিববর্ষের লগো সমৃদ্ধ কোট পিন প্রদান করেন প্রধান সমন্বয়কারী মোঃ আবু ওবাইদা-আল-মাহাদী।

গাংনীতে ইউনিয়ন পর্যায়ে শুদ্ধসুরে জাতীয় সঙ্গীত প্রতিযোগিতা

গাংনী প্রতিনিধি ॥ মেহেরপুরের গাংনী উপজেলার সাহারবাটী ইউনিয়নে শুদ্ধসুরে জাতীয় সঙ্গীত প্রতিযোগিতা অনুষ্ঠিত হয়েছে। গতকাল বুধবার সকালে উপজেলার জোড়পুকুরিয়া মাধ্যমিক বিদ্যালয়ে এ প্রতিযোগিতা অনুষ্ঠিত হয়। উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা অফিসের আয়োজনে প্রতিযোগিতা অনুষ্ঠিত হয়। প্রতিযোগিতায় অংশগ্রহণ করে-সাহারবাটী ইউনিয়নের জোড়পুকুরিয়া মাধ্যমিক বিদ্যালয়,বিডি (ভোমরদহ-ধর্মচাকী) মাধ্যমিক বিদ্যালয়, জেটিএস (জোড়পুকুরিয়া-তেরাইল-ষোলটাকা) মাধ্যমিক বালিকা বিদ্যালয়, ভাটপাড়া মাধ্যমিক বিদ্যালয়, সাহারবাটী ইবাদতখানা মাধ্যমিক বিদ্যালয়, হিজলবাড়ীয়া মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীরা। প্রতিযোগিতায় জোড়পুকুরিয়া মাধ্যমিক বিদ্যালয় ইউনিয়ন পর্যায়ে সেরা হিসাবে উত্তীর্ণ হয়। দ্বিতীয় হয় জেটিএস মাধ্যমিক বালিকা বিদ্যালয়। প্রতিযোগিতার বিচারক প্যানেলে ছিলেন সাংস্কৃতিক কর্মী ও সাংবাদিক আমিরুল ইসলাম, সঙ্গীত শিল্পী ও সাংবাদিক জুলফিকার আলী কানন ও সংগীত শিল্পী ফারজানা তথাপি। প্রতিযোগিতার বাদ্যযন্ত্রে সহযোগিতা করেন গাংনী উপজেলা শিল্পকলা একাডেমীর প্রশিক্ষক ও জোড়পুকুরিয়া মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের সঙ্গীত শিক্ষক এসএস সেলিম রেজা ও সাংস্কৃতিক কর্মী সুলাইমান হোসেন। আয়োজনে উপস্থাপনা করেন জোড়পুকুরিয়া মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের সহকারী শিক্ষক ও সাংস্কৃতিক কর্মী হুমায়ূন কবীর সুমন। অনুষ্ঠানে প্রতিযোগীদের উদ্দেশ্যে দিকনির্দেশনামূলক বক্তব্য প্রদান করেন জোড়পুকুরিয়া মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক হাসান-আল-নূরানীসহ বিভিন্ন বিদ্যালয়ের শিক্ষকবৃন্দ।

 

দৌলতপুর সীমান্তে ৮ কেজি গাঁজা উদ্ধার

দৌলতপর প্রতিনিধি ॥ কুষ্টিয়ার দৌলতপুর সীমান্তে ৮ কেজি গাঁজা উদ্ধার হয়েছে। গতকাল বুধবার রাত সাড়ে ৭টার দিকে উপজেলার প্রাগপুর ইউপি’র ময়রামপুর মাঠে অভিযান চালিয়ে ৮ কেজি গাঁজা উদ্ধার করেছে বিজিবি। প্রাগপুর বিওপি’র টহল দল মাদক বিরোধী অভিযান চালিয়ে মালিক বিহীন অবস্থায় বিপুল পরিমান মাদক উদ্ধার করে।

১৬ দফা বাস্তবায়নের দাবিতে তৃতীয় দিনের কর্মসূচি পালন

১৫ ফেব্রয়ারি হতে ২ঘন্টা কর্মবিরতি পালন করবে ইবি কর্মকর্তা সমিতি

কুষ্টিয়া ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয়ে কর্মকর্তাদের ১৬ দফা বাস্তবায়নের দাবিতে অবস্থান ও কর্মবিরতি চলছে। ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয় কর্মকর্তা সমিতির উদ্যোগে ১০ ফেব্রুয়ারি থেকে প্রতিদিন ১ ঘন্টা করে প্রশাসন ভবনের সামনে অবস্থান এবং কর্মবিরতি পালন করছেন কর্মকর্তারা। গতকাল বুধবার কর্মসূচির তৃতীয় দিনে বেলা ১১-১২টা পর্যন্ত ১ঘন্টাব্যাপী এ কর্মসূচি পালন করা হয়। ১৩ ও ১৪ ফেব্র“য়ারি ক্যাম্পাস সাপ্তাহিক ছুটি থাকায় পূর্ব ঘোষণা অনুযায়ী ১৫ ফেব্র“য়ারি হতে প্রতিদিন বেলা ১১ হতে দুপুর ১টা পর্যন্ত ২ঘন্টা করে এ কর্মসূচি চলবে।

তৃতীয় দিনের কর্মসূচি চলাকালে সমিতির সভাপতি মোঃ শামছুল ইসলাম জোহার সভাপতিত্বে এবং সাধারণ সম্পাদক মীর মোঃ মোর্শেদুর রহমানের পরিচালনায় অনুষ্ঠিত সমাবেশে বক্তব্য রাখেন সমিতির সহ-সভাপতি মোঃ গোলাম আযম বিশ্বাস পলাশ, যুগ্ম-সম্পাদক মোঃ রাশিদুজ্জামান খান টুটুল, নির্বাহী সদস্য মোঃ বাবুল হোসেন এবং শাখা কর্মকর্তা আজিজুর রহমান জালাল। সভায় বক্তারা বলেন, ১৬ দফা আমাদের ন্যায় সঙ্গত এবং প্রাণের দাবি। ইতোপূর্বে এ দাবিতে আমরা একাধিকবার  আন্দোলন করেছি। সেসময় বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসনের পক্ষ থেকে  দাবি পূরণের আশ্বাস পাওয়ায় আমরা আন্দোলন স্থগিত করেছি। তাঁরা বারংবার আশ্বাস দিয়েছেন কিন্তু দাবি পুরণ করেননি। বাধ্য হয়ে আমাদেরকে আবারও আন্দোলন করতে হচ্ছে। বক্তারা বলেন, আমরা আশারাখি বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন অতিদ্রুত আমাদের সার্বজনীন  স্কেলসহ ১৬ দফা দাবি বাস্তবায়ন করবেন। দাবি বাস্তবায়ন না হওয়া পর্যন্ত আমরা আন্দোলনেই থাকবো। প্রয়োজনে আন্দোলনের কর্মসূচি আরও বৃদ্ধি করা হবে।  সংবাদ বিজ্ঞপ্তি

আলমডাঙ্গায় ২১ ফেব্রয়ারী  উদযাপন উপলক্ষে প্রস্তুতি সভা

আলমডাঙ্গা অফিস ॥ আলমডাঙ্গা উপজেলা প্রশাসনের আয়োজনে ২১ ফেব্র“য়ারী  উদযাপন উপলক্ষে প্রস্তুতি সভা গতকাল উপজেলা পরিষদ মিলায়তনে উপজেলা নির্বাহী অফিসার মোঃ লিটন আলীর সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত হয়েছে। এতে প্রধান অতিথি ছিলেন উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান আইয়ুব হোসেন। বিশেষ অতিথি ছিলেন উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান অ্যাড. সালমুন আহমেদ ডন, উপজেলা কৃষি অফিসার মোহাম্মদ আলী জিন্না, আলমডাঙ্গা সরকারী কলেজের ভারপ্রাপ্ত অধ্যক্ষ গোলাম সরোয়ার মিঠু,  উপজেলা শিক্ষা অফিসার শামসুজ্জোহা, মুক্তিযোদ্ধা এম সবেদ আলী, অগ্নিসেনা মঈন উদ্দিন, আবুল কাসেম, আব্দুল কুদ্দুস, নাজিম উদ্দিন, আলমডাঙ্গা থানার এসআই আশিকুল ইসলাম, প্রেসক্লাব সভাপতি খন্দকার শাহ আলম মন্টু। সমাজ সেবা অফিসার আফাজ উদ্দিনের উপস্থাপনায় উপস্থিত ছিলেন যুব উন্নয়ন অফিসার আনিসুর রহমান, মহিলা বিষয়ক অফিসার মাখছুরা জান্নান, একাডেমি সুপারভাইজার ইমরুল হক, উপসহকারী মেডিকেল অফিসার মঞ্জুরুল ইসলাম বেলু, আনসার ভিডিপি অফিসার রওশন আরা, প্রধান শিক্ষক হারেছ উদ্দিন, সমাজ সেবক ফজলুল হক, ইদ্রিস আলী, আজিবার রহমান, ইউসুফ আলী, সহকারী শিক্ষা অফিসার আনারুল ইসলাম প্রমুখ।

 কুষ্টিয়ার কালিশংকপুরে মালিকানা সম্পত্তি জোরপূর্বক দখল, প্রতিবাদ করায় মালিককে পিটিয়ে জখম

নিজ  কুষ্টিয়ার কালিশংকরপুরে মালিকানা সম্পত্তি জোরপূর্বক ভোগ দখল ও চাঁদাবাজীর অভিযোগ উঠেছে শহরের ৭ নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর পেয়ার আলী জুমারত ও তার ছেলে উদয় কুয়াশার বিরুদ্ধে। এ ঘটনায় চাঁদা না দেয়ায় জমির মালিক আঃ করিম বিশ্বাসকে পিটিয়ে জখম করেছে তারা। বর্তমানে তিনি কুষ্টিয়া জেনারেল হাসপাতালে ভর্তি রয়েছেন। এ বিষয়ে ভুক্তভোগি আঃ করিম বিশ্বাসের ছেলে মোস্তাক আহম্মেদ পলাশ বাদী হয়ে ৭ নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর পেয়ার আলী জুমারত ও তার ছেলে উদয় কুয়াশার নাম উল্লেখ করে কুষ্টিয়া মডেল থানায় অভিযোগ দায়ের করেছে। অভিযোগ সুত্রে জানা গেছে, শহরের কালিশংকরপুর এলাকার আঃ করিম বিশ্বাস তিনমাস পুর্বে কালিশংকরপুর মৌজার মৃত আইয়ুব আলীর স্ত্রী মোছা জোসনা বেগমের কাছ থেকে হাউজিং বি-২ প্লটে ২২.৮ কাঠা জমি ক্রয় করেন। কিন্তু উক্ত জমি জমি শহরের ৭ নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর পেয়ার আলী জুমারত ও তার ছেলে উদয় কুয়াশ জোরপুর্বক ভোগ দখল করে এবং তা নিতে হলে চাঁদা দাবি করে। করিম বিশ্বাসকে তার দাবিকৃত ১০ লক্ষ টাকা চাঁদা দিতে অস্বীকার করায় গত ১১/২/২০২০ ইং তারিখে আনুমানিক সকাল সাড়ে নয়টায় করিম বিশ্বাসের ক্রয়কৃত হাউজিং এস্ট্রেট বি /২ প্লটের উপর বাউন্ডারী নির্মান করতে গেলে কাউন্সিলর পেয়ার আলী জুমারত ও তার ছেলে উদয় কুয়াশা কুয়াশা ও তার পেটুয়া বাহিনীরা করিম বিশ্বাসকে প্রান নাশের উদ্দেশ্যে অতর্কিত হামলা চালিয়ে রক্তাক্ত জখম করে। এ ব্যাপারে করিম বিশ্বাসের ছেলে মোস্তাক আহম্মেদ পলাশের সাথে কথা হলে তিনি জানান,পিয়ার আলী জুমারত ও তার ছেলে উদয় কুয়াশা দীর্ঘ দিন আমার পিতা করিম বিশ্বাসকে জমি দখল করতে বাধা সৃষ্টি করে। জমি ভোগ দখল করতে গেলে জুমারত ও তার ছেলে কুয়াশাকে ১০ লক্ষ টাকা চাঁদা দিতে হবে। অন্যথায় দীর্ঘ দিন যাবত আমার ও আমার পরিবারকে প্রান নাশের হুমকি দিয়ে আসছিলো। এ ব্যাপারে আমরা গত ২/১/২০২০ তারিখে কুষ্টিয়া মডেল থানায় একটি অভিযোগ দায়ের করে ছিলাম। উক্ত অভিযোগের ভিত্তিতে পিয়ার আলী জুমারত ও তার ছেলে উদয় কুয়াশাসহ চার পাঁচ জন অজ্ঞাতানামা সন্ত্রাসীদের নিয়ে আমার পরিবারের উপরে হামলা চালায়। তারপর আমাদের জমির বাউন্ডারির প্রাচীর ভেঙ্গে দেয় এবং আমার বাবাকে গালিগালাজ করতে থাকে। এক পর্যায়ে আমার বাবা প্রতিবাদ করতে গেলে জুমারত ও তার ছেলে কুয়াশা এবং তার পেটুয়া বাহিনীরা আমার বাবাকে বেধরকভাবে মারধর করে রক্তাত্ত জখম করে।এ ব্যাপারে ১২/২/২০২০ ইং তারিখে কুষ্টিয়া মডেল থানায় একটি এজাহার দায়ের করেছি। বর্তমানে আমার বাবা করিম বিশ্বাস চিকিৎসাধীন অবস্থায় কুষ্টিয়া জেনারেল হাসপাতালে ভর্তি রয়েছে। তার অবস্থা আশংকাজনক।

এ ব্যাপারে তদন্তকারী কর্মকর্তা এস আই মোস্তাফিজ বলেন, উভয়পক্ষকে থানায় ডাকা হয়েছে। উদ্ধর্তন কর্মকর্তারা বিষয়টি তদন্ত করে ব্যবস্থা নিবেন।

কুষ্টিয়া পৌরসভার আয়োজনে  হাম রুমেলা ক্যাম্পেইন উপলক্ষে  ৪ দিনব্যাপি ট্রেনিং শুরু

গতকাল বুধবার সকালে কুষ্টিয়া পৌরসভার ম, আ, রহিম মিলনায়তনে হাম রুমেলা-২০২০ উপলক্ষে দুইব্যাচে ৪ দিনব্যাপি ট্রেনিং’র উদ্বোধন করেন কুষ্টিয়া পৌরসভার প্যানেল অব মেয়র-০১ আলহাজ¦ মতিয়ার রহমান মজনু। উদ্বোধনকালে আলহাজ¦ মতিয়ার রহমান মজনু বলেন, ২১ ফেব্র“য়ারী হতে ২১ মার্চ পর্যন্ত একমাস যাবৎ (প্রাক-প্রাথমিক শ্রেণী হতে ৪র্থ শ্রেণী পর্যন্ত) দশ বছরের কমবয়সী সকল শিশুকে একডোজ হাম রুবেলা টিকা প্রদান করা হবে। এছাড়াও পৌর এলাকার ২১ টি ওয়ার্ডের মধ্যে পুরাতন ১২টি ওয়ার্ডে ৭৬টি স্কুলে ৫০টি টিকা কেন্দ্র করা হবে। এছাড়াও নতুন ৯টি ওয়ার্ড সদর উপজেলা এই কার্যক্রম পরিচালনা করবে। তিনি আরোও বলেন, প্রথম সপ্তাহে স্কুলে হাম-রুমেলা টিকা প্রদান করা হবে। পরবর্তি সপ্তাহে ওয়ার্ডে কমিউনিটি ইপিআই টিকা কেন্দ্র গুলিতে টিকা প্রদান করা হবে। ওয়ার্ড কমিউনিটি ইপিআই টিকা কেন্দ্র  পৌর এলাকায় পুরাতন ১২টি ওয়ার্ডে মোট ৪৮টি কেন্দ্রে এই টিকা প্রদান করা হবে। এসময় ট্রেনিং গ্রহন করেন পৌরসভার স্বাস্থ্য বিভাগে কর্মরত কর্মচারী, কুষ্টিয়া পৌরসভা পরিচালিত আরবান প্রাইমারী হেলথ কেয়ার ডেলিভারি প্রকল্পে কর্মরত কর্মচারী, মাতৃসনদের প্রতিনিধি, পারিবারিক স্বাস্থ্য ক্লিনিকের প্রতিনিধি সহসুপারভাইজারবৃন্দ। এসময় উপস্থিত ছিলেন  পৌরসভার সচিব কামাল উদ্দিন। ট্রেনিং পরিচালনা করেন কুষ্টিয়া সিভিল সার্জন অফিসের ইপিআই সুপারেনটেনডেন্ট ইমদাদুল হক পাতা। সংবাদ বিজ্ঞপ্তি

করোনাভাইরাস বিশ্বের জন্য হুমকি

ঢাকা অফিস ॥ চীন থেকে ছড়িয়ে পড়া করোনাভাইরাস ‘বিশ্বের বাদবাকী দেশগুলোর জন্য গুরুতর হুমকি’ বলে হুঁশিয়ারি উচ্চারণ করেছেন বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার (ডব্লিউএইচও) প্রধান টেডরস আধানম গেব্রিয়াসুস। প্রাণঘাতী এ ভাইরাসের নমুনা অন্যদের সঙ্গে বিনিময় করাসহ এর টিকা এবং ওষুধ  তৈরির জন্য গবেষণা জোরদারের আহ্বানও মঙ্গলবার জানিয়েছেন তিনি। বিশ্বের বিভিন্ন দেশে ছড়িয়ে পড়া এ ভাইরাস নিয়ে বাড়তে থাকা উদ্বেগের মধ্যে এর ওষুধ, লক্ষণ সনাক্ত করা এবং ফ্লু জাতীয় ভাইরাসটির টিকা নিয়ে গবেষণা ত্বরান্বিত করার লক্ষ্যে দু’দিনের এক বৈঠকের শুরুতে দেওয়া ভাষণে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার মহাসচিব গেব্রিয়াসুস ওই আহ্বান জানান। চীনে করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছেন ৪২ হাজার ৭০৮ জন এবং নিহতের সংখ্যা দাঁড়িয়েছে ১ হাজার ০১৭ জনে। “৯৯ শতাংশ ক্ষেত্রে ভাইরাসটি চীনের জন্য জরুরি অবস্থা হয়ে দাঁড়িয়েছে, কিন্তু বিশ্বের বাদবাকী দেশগুলোর জন্য এটি অত্যন্ত গুরুতর হুমকি হয়ে দেখা দিয়েছে,” বলেন ডব্লিউএইচও’র প্রধান গেব্রিয়াসুস। বৈঠকে চার শতাধিক গবেষক এবং জাতীয় কর্তৃপক্ষের উদ্দেশে একথা বলেন তিনি। চীন এবং তাইওয়ান থেকে কেউ কেউ ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমেও এ বৈঠকে অংশ নিয়েছেন। বৈঠকটি থেকে ভাইরাসটি নিয়ে গবেষণার জন্য সর্বসম্মত একটি পথনির্দেশনা বের হয়ে আসবে বলে গেব্রিয়াসুস আশা প্রকাশ করেন। তিনি বলেন,“সব কথার শেষ কথা হচ্ছে সংহতি, সংহতি, সংহতি।এ ভাইরাসকে পরাজিত করতে একে অপরের সঙ্গে নমুনা আদান-প্রদানসহ একতাবদ্ধভাবে কাজ করাটাই আমাদের প্রয়োজন।”

খালেদা জিয়ার প্যারোলে মুক্তিতে রাজি পরিবার, ‘জানে না’ দল

ঢাকা অফিস ॥ দীর্ঘদিন ধরে কারাগারে থেকে গুরুতর অসুস্থ হয়ে পড়া বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার মুক্তিতে সব রকমের চেষ্টা করে যাচ্ছে তার দল ও পরিবার। দলের নেতা ও পরিবারের সদস্যদের গত দুদিনের বক্তব্যে সেটিই স্পষ্ট হয়ে উঠেছে। খালেদা জিয়ার প্যারোলে মুক্তির বিষয়ে বিএনপি নেতারা কার্যত দ্বিধাবিভক্ত। তবে খালেদা জিয়ার দ্রুত চিকিৎসা নিশ্চিত করতে তার প্যারোলে মুক্তির বিষয়ে আপত্তি নেই তার ভাই-বোনদের। মঙ্গলবার বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ে (বিএসএমএমইউ) খালেদা জিয়াকে দেখে এসে একথা জানান তার ভাই-বোনেরা। বিএনপি চেয়ারপারসনের বোন সেলিমা ইসলাম জানিয়েছেন, খালেদা জিয়ার শারিরীক অবস্থা প্রতিনিয়ত খারাপ হচ্ছে এবং সেজন্য তারা বিদেশে চিকিৎসার জন্য প্যারোলে হলেও তার মুক্তি চান তারা। সেলিমা ইসলাম বিবিসিকে বলেন, ‘আমরা চাচ্ছি সরকার খালেদা জিয়ার স্বাস্থ্যের অবস্থা বিবেচনা করুক। যেভাবেই হোক, তাকে বিদেশে নেয়ার জন্য আমাদের অনুমতি দিক। প্যারোলে দিলেও দিতে পারে। কারণ তার (খালেদা) শারীরিক অবস্থা খুবই খারাপ।’ খালেদা জিয়া বিদেশ যেতে রাজি হবেন কিনা এমন প্রশ্নে সেলিমা ইসলাম বলেন, উনার সম্মতি থাকবে। উনার অবস্থা এতই খারাপ হয়ে গিয়েছে যে, ৫ মিনিটও দাঁড়িয়ে থাকতে পারছেন না। বাম হাত সম্পূর্ণ বেঁকে গেছে। ডান হাতেরও খারাপ অবস্থা। তার চোখ দিয়েও অনবরত পানি পড়ছে। পায়ে কোনো সাপোর্ট রাখতে পারছেন না। এই অবস্থায় একটা মানুষ তো চিকিৎসার জন্য যেখানেই হোক যেতে চাইবে। এদিকে খালেদা জিয়ার সঠিক চিকিৎসা নিশ্চিত করতে তাকে বিদেশ পাঠানোর ব্যবস্থা করতে বিএসএমএমইউ কতৃপক্ষকে চিঠি দিয়েছেন তার ভাই শামীম ইস্কান্দার। সাবেক প্রধানমন্ত্রীকে বিদেশে পাঠানোর জন্য মেডিকেল বোর্ডের সুপারিশ চেয়ে তার পরিবারের পক্ষ থেকে এটাই প্রথম লিখিত আবেদন। এই আবেদন করা হয়েছে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্যের কাছে। শামীম ইস্কান্দার আবেদনে লিখেছেন, খালেদা জিয়ার দ্রুত অবনতিশীল স্বাস্থ্যের পরিপ্রেক্ষিতে যেকোন অপূরণীয় ক্ষতি এড়াতে আধুনিক সুযোগ সুবিধা সম্বলিত বিদেশি হাসপাতালে চিকিৎসা প্রয়োজন। খালেদা জিয়ার পরিবারের পক্ষ থেকে ব্যয় বহন করে এবং তাদের দায়িত্বে উন্নত চিকিৎসার ব্যবস্থা নেয়ার ক্ষেত্রে হাসপাতাল কর্তৃপক্ষের সহযোগিতা চাওয়া হয়েছে এই আবেদনে। এই আবেদন বিবেচনা করা হবে বলে আশা করছেন খালেদা জিয়ার পরিবার। হাসপাতাল কর্তৃপক্ষের কাছে এমন আবেদন করার বিষয়ে সেলিমা ইসলাম বলেন, মেডিকেল বোর্ড যেন বিদেশে চিকিৎসার ব্যাপারে সরকারকে সুপারিশ করে সেজন্য তাদের এই আবেদন। ‘আবেদনে উন্নত চিকিৎসার জন্য বিদেশে নিতে চেয়েছি। আর বলেছি যে, উনাকে নি:শর্ত মুক্তি দিতে। কারণ এটা মিথ্যা মামলা। সেজন্য আমরা নি:শর্ত মুক্তির জন্য বলেছি’-যোগ করেন সেলিমা ইসলাম। উল্লেখ্য, মঙ্গলবার বিকাল সাড়ে ৩টায় খালেদা জিয়ার সঙ্গে সাক্ষাৎ করতে বিএসএমএমইউ হাসপাতালে যান পাঁচ স্বজন সেজো বোন সেলিমা ইসলাম, ছোট ভাইয়ের স্ত্রী কানিজ ফাতিমা, তার ছেলে অভিক এস্কান্দার, তারেক রহমানের স্ত্রীর বড় বোন শাহিনা জামান খান বিন্দু ও কোকোর শাশুড়ি ফাতিমা রেজা। প্রায় ঘণ্টাখানেক সেখানে অবস্থান করেন তারা। এদিকে খালেদা জিয়ার প্যারোলে মুক্তির বিষয়ে জানেন না বলে জানিয়েছেন বিএনপির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর। বুধবার নয়াপল্টনে সংবাদ সম্মেলনে এক প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, উনার পরিবারের পক্ষ থেকে প্যারোলের জন্য আবেদন করা হয়েছে কিনা সেটি আমার জানা নেই। পরিবারের পক্ষ থেকেও এ বিষয়ে আমাদের কিছু জানানো হয়নি। তবে খালেদা জিয়ার মুক্তির জন্য বিএনপি সব রকম চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছে বলে জানান মির্জা ফখরুল। তিনি বলেন, সরকার সুপরিকল্পিতভাবে খালেদা জিয়াকে হত্যা করার জন্য কারাগারে জোর করে আটকে রেখেছে। আমরা তাকে বাঁচাতে চাই। তার মুক্তির জন্য সাংবিধানিকভাবে যতরকমের চেষ্টা করার আমরা সবই করছি। আইনগতভাবেও যতরকম পথ আছে সবরকম চেষ্টা করে যাচ্ছি। তবে এটি আইনের মধ্যে নেই। সে জন্য জনগণকে সঙ্গে নিয়ে তার মুক্তির জন্য লড়াই চালিয়ে যাচ্ছি। মির্জা ফখরুল বলেন, খালেদা জিয়াকে মুক্তি দেয়া না দেয়ার পুরো ইচ্ছেটাই সরকারের হাতে। অন্যায়ভাবে তাকে গ্রেফতারের জন্য সরকারই দায়ী। এ ধরনের মামলায় সাত দিনের মধ্যে জামিন হওয়ার কথা। সাধারণ নাগরিকও সাত দিনে জামিন পায়। কিন্তু উনাকে দু’বছর ধরে আটকে রাখা হয়েছে। উল্লেখ্য, দুর্নীতির দুই মামলায় ১৭ বছর দন্ড নিয়ে কারাবন্দি খালেদা জিয়া। তার জেল খাটার দুই বছর পূর্ণ হয়েছে ৮ ফেব্র“য়ারি। প্রায় ১০ মাস ধরে তিনি হাসপাতালে চিকিৎসাধীন রয়েছে।

গাংনীতে মহিষের গাড়িতে চড়ে বিয়ে করলেন বিজিবি সদস্য

গাংনী প্রতিনিধি ॥ ডিজিটাল যুগেও পুরাতন ঐতিহ্য ধরে রাখতে যান্ত্রিক যানবাহন বাদ দিয়ে মেহেরপুরের গাংনী উপজেলার নওদা-মটমুড়া গ্রামের বিজিবি সদস্য ওবাইদুর রহমান মহিষের বাড়িতে চড়ে বিয়ে করেছেন। ওবাইদুর নওদা-মটমুড়া গ্রামের ওয়াজ আলীর ছেলে। সে বর্তমান বিজিবিতে কর্মরত। গতকাল বুধবার দুপুরে কনের পিতা একই গ্রামের মাঠপাড়ার সাহাদুল ইসলামের বাড়িতে মহিষের গাড়ি চড়ে বরযাত্রীদের নিয়ে উপস্থিত হন। আগে থেকে কনের পক্ষ বরকে বরণ করতে নানা ধরণের সাজ- গোজ করে রাখে। যান্ত্রিক যুগে মহিষের গাড়িতে বর আসার খবর শুনে ওই বিয়ে দেখতে শত-শত মানুষ কনের বাড়িতে ভীড় জমায়। বর ওবাইদুর রহমান জানান বাপ-দাদাদের ঐহিত্য টিকে রাখার লক্ষ্য নিয়ে এভাবে বিয়ে করা। তাতে খরচ কম হয়েছে। পাশাপাশি দ্বিগুন আনন্দ হয়েছে।

রোহিঙ্গা নিয়ে কোনো কথা বলেনি সৌদি সরকার – পররাষ্ট্রমন্ত্রী

ঢাকা অফিস ॥ সৌদি আরব ৪২ হাজার রোহিঙ্গাকে বাংলাদেশে ফেরত পাঠাতে চাপ দিচ্ছে বলে যে খবর এসেছে, তা নাকচ করে দিয়েছেন পররাষ্ট্রমন্ত্রী এ কে আব্দুল মোমেন। তিনি বলেছেন, সৌদি সরকার রোহিঙ্গা নিয়ে এখনও কিছু বলেনি। সম্প্রতি এক সংবাদপত্রে খবর প্রকাশ হয় যে বাংলাদেশের পাসপোর্ট নিয়ে সৌদি আরব গিয়ে ধরা পড়া ৪২ হাজার রোহিঙ্গাকে ফেরত নিতে চাপ দিচ্ছে দেশটির সরকার। বুধবার ঢাকায় এক অনুষ্ঠানে এবিষয়ে সাংবাদিকদের প্রশ্নে পররাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, “এটা আসলে ঠিক না। এটা পেপার লিখেছে, আমাদের কাছে সৌদি আরব এই সম্পর্কে কিছুই বলে নাই। “সুতরাং এটা আমরা যদি সরকারিভাবে না পাই, তাহলে এ সম্পর্কে আমাদের কমেন্ট করার কোনো কারণ নাই।” তিনি বলেন, “রোহিঙ্গা যদি হয়, তারা তাদের দেশে যাবে, আমাদের এখানে কেন? বাংলাদেশি হলে আমরা নিশ্চয় দেখব।” যৌথ কমিশনের সভায় সৌদি আরব বিষয়টি তুলেছে বলে প্রকাশিত সংবাদ প্রতিবেদনে বলা হয়েছে। এ বিষয়ে মোমেন বলেন, “তাহলে উনারা (বাংলাদেশ মিশন) আমাদের জানাবে, আমাদের যদি জানায়, তখন আমরা কথা বলব। হঠাৎ করে এসব আসছে পত্রিকায়। আমাদের সরকারিভাবে যদি জানায়, তখন এগুলো নিয়ে আলাপ করব, তার আগে নয়।” আন্তর্জাতিক কনভেনশন সিটি বসুন্ধরায় ‘বিমসটেক ট্যাডিশনাল হেলথকেয়ার এক্সপো’র উদ্বোধনী অনুষ্ঠান শেষে সাংবাদিকদের প্রশ্নের উত্তর দেন পররাষ্ট্রমন্ত্রী। বাংলাদেশ আয়ুর্বেদ ফাউন্ডেশন ও ইন্ডিয়ান চেম্বার অব কমার্স (আইসিসি) যৌথভাবে তিন দিনব্যাপী ওই প্রদর্শনীর আয়োজন করেছে। উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে অন্যদের মধ্যে বিমসটেক মহাসচিব শহীদুল ইসলাম, ঢাকায় ভারতীয় হাই কমিশনার রীভা গাঙ্গুলী দাশ, বাংলাদেশ আয়ুর্বেদ ফাউন্ডেশনের সভাপতি এ বি এম গোলাম মোস্তফা বক্তব্য দেন।

করোনাভাইরাস নিয়ে আতঙ্কিত হবেন না, প্রস্তুতি আছে – স্বাস্থ্যমন্ত্রী

ঢাকা অফিস ॥ প্রাণ সংহারী নভেল করোনাভাইরাস নিয়ে আতঙ্কিত না হতে দেশবাসীর প্রতি আহ্বান জানিয়ে স্বাস্থ্যমন্ত্রী জাহিদ মালেক বলেছেন, প্রতিরোধ ও প্রতিকারের সব ব্যবস্থা সরকার নিয়ে রেখেছে। করোনাভাইরাসে চীনে মৃতের সংখ্যা হাজার ছাড়িয়ে যাওয়ার পর বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা যখন একে বিশ্বের জন্য হুমকি বলে ঘোষণা করেছে, তখন বাংলাদেশের নাগরিকদের আশ্বস্ত করলেন স্বাস্থ্যমন্ত্রী। বুধবার ঢাকার রিপোর্টার্স ইউনিটিতে এক অনুষ্ঠানে তিনি বলেন, “করোনাভাইরাস প্রতিরোধে ও চিকিৎসার জন্য যথাযথ ব্যবস্থা প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশে আমরা গ্রহণ করেছি। এদেশে করোনাভাইরাসে আক্রান্ত কোনো রোগী এখনও পাওয়া যায়নি। “খুব দঢ়তার সাথে বলতে চাচ্ছি, এই বিষয়ে আতঙ্কিত হওয়ার কিছু নেই এবং আমাদের চিকিৎসার সকল ব্যবস্থা নেওয়া আছে।”

চীন থেকে ২৫টির বেশি দেশে নভেল করোনাভাইরাস ছড়িয়ে পড়েছে। বাংলাদেশে এখনও কেউ আক্রান্ত না হলেও সিঙ্গাপুরে দুই বাংলাদেশির মধ্যে এই ভাইরাস সংক্রমণ ঘটেছে। জাহিদ মালেক বলেন, “সিঙ্গাপুরে তাদের চিকিৎসা ব্যবস্থা নেওয়া হয়েছে এবং আমরা দোয়া করি যাতে তারা দ্রুত সুস্থ হন। আমাদের অনেক লোক সিঙ্গাপুরে বসবাস করে, তারা যাতে সাবধানে থাকে, তারা যেন আরও সতর্ক হয়।” করোনাভাইরাস প্রতিরোধে ইতোমধ্যে বিমানবন্দরগুলোতে সতর্কতামূলক ব্যবস্থা নেওয়া হয়েছে। স্বাস্থ্যমন্ত্রী বলেন, “নির্দেশ দেওয়া রয়েছে, চীন থেকে আসলে যেরকম নজরদারি দেওয়া হয়ে থাকে, সিঙ্গাপুর থেকে আসলেও যাতে সে রকম নজরদারি দেওয়া হয়।” দেশে প্রস্তুতির বিষয়ে তিনি বলেন, ঢাকায় তিনটি হাসপাতালে আইসোলেটেড ওয়ার্ড প্রস্তুত করা হয়েছে, চিকিৎসক, নার্সদের প্রশিক্ষণের ব্যবস্থা করা হয়েছে। ঢাকার উত্তরার কুয়েত মৈত্রী সরকারি হাসপাতালে ২০ শয্যার একটি নিবিড় পরিচর্যা কেন্দ্র বা আইসিইউ ইউনিট প্রস্তুত করা হয়েছে বলে জানান স্বাস্থ্যমন্ত্রী। তিনি বলেন, “পুরো কুয়েত মৈত্রী হাসপাতাল প্রস্তুত করা হয়েছে। অন্যসব হাসপাতালে চিকিৎসা দেওয়া হবে। কিন্তু ডেডিকেট করা হয়েছে কুয়েত মৈত্রী হাসপাতাল।”

বিসিএস – নন-ক্যাডারে নিয়োগ পেলেন ৭৩১ জন

ঢাকা অফিস ॥ ঊনচল্লিশতম বিশেষ বিসিএসের চূড়ান্ত ফলাফলে উত্তীর্ণ হয়েও যারা ক্যাডার পাননি তাদের মধ্য থেকে ৫৬৪ জনকে প্রথম শ্রেণির নন-ক্যাডার পদে নিয়োগের সুপারিশ করেছে সরকারি কর্ম কমিশন (পিএসসি)। এছাড়া ৩৭তম বিসিএসে উত্তীর্ণদের মধ্য থেকে ১৬৭ জনকে দ্বিতীয় শ্রেণির নন-ক্যাডার পদে নিয়োগের সুপারিশ করা হয়েছে। বুধবার কমিশনের বিশেষ সভায় এদের নিয়োগের সুপারিশ করা হয় বলে পিএসসির এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে জানানো হয়েছে। ৩৯তম বিশেষ বিসিএসের মাধ্যমে চার হাজার ৫৪২ জনকে সহকারী সার্জন এবং ২৫০ জনকে সহকারী ডেন্টাল সার্জন পদে নিয়োগের জন্য সুপারিশ করা হয়। আর ৩৭তম বিসিএসের লিখিত ও মৌখিক পরীক্ষায় ৪ হাজার ৭৬৮ জন উত্তীর্ণ হলেও তাদের মধ্য থেকে এক হাজার ৩১৪ জনকে বিভিন্ন ক্যাডারে নিয়োগের জন্য সুপারিশ করা হয়। ৩৭তম বিসিএস পরীক্ষায় ক্যাডার পদে এবং প্রথম শ্রেণির নন-ক্যাডার পদে সুপারিশ পাননি এমন প্রার্থীদের মধ্য থেকে ১৬৭ জনকে দ্বিতীয় শ্রেণির নন-ক্যাডার পদে নিয়োগের সুপারিশ করা হল। এর আগে ৩৭তম বিসিএসে উত্তীর্ণদের মধ্যে প্রথম শ্রেণির নন-ক্যাডার পদে ৬৯২ জন এবং দ্বিতীয় শ্রেণির নন-ক্যাডার পদে এক হাজার ৫২ জনকে নিয়োগের সুপারিশ করে পিএসসি। চূড়ান্ত পরীক্ষায় উত্তীর্ণ হয়েও যারা ক্যাডার পান না, তাদের মধ্য থেকে প্রথম শ্রেণির নন-ক্যাডার পদে নিয়োগ দেওয়ার প্রক্রিয়া শুরু হয় ৩১তম বিসিএস থেকে। বিসিএসে উত্তীর্ণদের মধ্য থেকে (যারা ক্যাডার পায়নি) দ্বিতীয় শ্রেণির কর্মকর্তা হিসেবে নিয়োগ দিতে ২০১৪ সালের ১৬ জুন নন-ক্যাডার পদের নিয়োগ বিধিমালা সংশোধন করে সরকার। বিসিএসের চূড়ান্ত পরীক্ষায় উত্তীর্ণ হয়েও যারা ক্যাডার পায়নি তাদের মধ্য থেকে যারা প্রথম ও দ্বিতীয় শ্রেণির নন-ক্যাডার পদে নিয়োগ পেতে চান তাদেরকে আলাদাভাবে কমিশনে আবেদন করতে হয়।