বাংলাদেশীদের তাড়ানোর দাবিতে মুম্বাইয়ে সমাবেশ

ঢাকা অফিস ॥ কথিত অবৈধ বাংলাদেশীদের তাডানোর দাবিতে ভারতের বাণিজ্যিক নগরী মুম্বাইতে লক্ষাধিক মানুষের মিছিল ও জনসভা অনুষ্ঠিত হয়েছে। রোববার রাজ্যটির প্রভাবশালী রাজনৈতিক দল ‘মহারাষ্ট্র নবনির্মাণ সেনা’ দেশ থেকে অবৈধ অনুপ্রবেশকারীদের বিতাড়নের দাবিতে ও নতুন নাগরিকত্ব আইনের সমর্থনে এই জনসভার ডাক দিয়েছিল বলে বিবিসি জানিয়েছে। জনসভায় দলনেতা রাজ ঠাকরে ঘোষণা করেন, ‘ভারত কোনও ধর্মশালা নয়, এখান থেকে বাংলাদেশী ও পাকিস্তানিদের তাড়িয়েই ছাড়া হবে।’ বিবিসির খবরে বলা হয়, মুম্বাইয়ের গোরেগাঁওতে হিন্দু জিমখানা গ্রাউন্ড থেকে শহরের দক্ষিণ প্রান্তে আজাদ ময়দান পর্যন্ত রাজ ঠাকরের দল মহারাষ্ট্র নবনির্মাণ সেনা এদিন যে বিশাল পদযাত্রার আয়োজন করেছিল, ওই শহরে এত বড় মাপের জমায়েত অনেকদিন হয়নি। বিবিসি মারাঠির সংবাদদাতা ময়ূরেশ বলছিলেন, ‘দলের গেরুয়া পতাকা নিয়ে হাজার হাজার কর্মী-সমর্থক এদিন যেন মুম্বাইকে গেরুয়াতে রাঙিয়ে তুলেছিলেন। অচল হয়ে গিয়েছিল মেরিন ড্রাইভ।’ আর এই জনসভার প্রধান দাবিই ছিল ভারতে অবৈধভাবে প্রবেশ করা বাংলাদেশী ও পাকিস্তানিদের এদেশ থেকে তাড়াতে হবে। উগ্র হিন্দুত্ববাদী দল শিবসেনার প্রতিষ্ঠাতা বালাসাহেব ঠাকরের ভাইপো রাজ ঠাকরে শিবসেনা থেকে বেরিয়ে এসে নিজের দল ‘মহারাষ্ট্র নবনির্মাণ সেনা’ গড়েছিলেন প্রায় চোদ্দ বছর আগে। কথিত বাংলাদেশীদের তাড়ানোর ইস্যু এক সময় দিলি¬তে বিজেপির বড় রাজনৈতিক হাতিয়ার ছিল। যদিও দিলি¬র সাম্প্রতিক নির্বাচনে অবশ্য সেটা তেমন কোনও ইস্যু হয়নি। কিন্তু ইদানীং দেখা যাচ্ছে দক্ষিণ ভারতের ব্যাঙ্গালোরে বা পশ্চিম ভারতের মুম্বাইতে সেটাকে বড় ইস্যু করে তোলার চেষ্টা হচ্ছে।

 

কাশ্মীরে জেকেএলএফ’র ধর্মঘট, পুলিশের এফআইআর দায়ের

ঢাকা অফিস ॥ ভারত-শাসিত কাশ্মীরে বিচ্ছিন্নতাবাদী সংগঠন জম্মু-কাশ্মীর লিবারেশন ফ্রন্ট (জেকেএলএফ) দুইদিনের ধর্মঘট ডেকেছে। এ ধর্মঘট ডাকায় সংগঠনটির বিরুদ্ধে এফআইআর দায়ের করেছে পুলিশ। কাশ্মীরের জেকেএলএফ ইতিমধ্যেই নিষিদ্ধ হয়েছে। ইয়াসিন মালিকের এ সংগঠনটি ৯ ফেব্রুয়ারি রবি এবং ১১ ফেব্র“য়ারি মঙ্গলবার কাশ্মীরে বণধের ডাক দিয়েছে। প্রতিষ্ঠাতা মকবুল বাট ও কাশ্মীরের বিচ্ছিন্নতাবাদী নেতা আফজল গুরুর মৃত্যুবার্ষিকী উপলক্ষেই বৃহস্পতিবার এ ধর্মঘট ডাকা হয়। এক সরকারি কর্মকর্তা জানিয়েছেন, রোববার ধর্মঘটে কাশ্মীরের ব্যবসা-বাণিজ্যসহ জনজীবনও স্থবির হয়েছে। ভারতীয় পুলিশ জায়গায় জায়গায় বেষ্টনী স্থাপন করে ধর্মঘটকারীদের বাধা দেওয়ার চেষ্টা চালায়। কোনোরকম বিক্ষোভ ঠেকাতে রাস্তায় রাস্তায় টহল দিয়েছে সশস্ত্র সেনা। গত মাসে স্বল্প পরিসরে কাশ্মীরে মোবাইল ইন্টারনেট চালু হলেও ধর্মঘটের কারণে পূর্বসতর্কতামূলক ব্যবস্থা হিসাবে তাও বন্ধ করা হয়েছে। ভারত সরকার গতবছর ৫ অগাস্ট জম্মু-কাশ্মীরের বিশেষ মর্যাদা প্রত্যাহার করে নেওয়ার পর বিচ্ছিন্নতাবাদীরা এই প্রথম সেখানে ধর্মঘট ডাকল বলে মনে তরা হচ্ছে। কাশ্মীর পুলিশও এই প্রথম নিষিদ্ধ সংগঠন জেকেএলএফের বিরুদ্ধে কড়া পদক্ষেপ নিয়েছে। বেআইনি কার্যকলাপ (প্রতিরোধ) আইন (১৯৬৭)-এ গত বছরের মার্চে জেকেএলএফকে নিষিদ্ধ ঘোষণা করেছিল কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রণালয়। এনডিটিভি জানিয়েছে, উপত্যকায় বনধ ডাকা নিয়ে জিগ্যাসাবাদ করতে সেখানকার দুই সাংবাদিককেও ডেকে পাঠিয়েছে পুলিশ। তাদের বিরুদ্ধেও এফআইআর দায়ের হতে পারে বলে ধারণা করা হচ্ছে।

‘স্যাটেলাইটের ছদ্মবেশে ক্ষেপণাস্ত্র পরীক্ষা করছে তেহরান’

ঢাকা অফিস ॥ উন্নত প্রযুক্তির নতুন একটি স্যাটেলাইট উৎক্ষেপণ করেছে ইরান। রোববার তেহরানের দক্ষিণ-পূর্বে মরুভূমি এলাকা সেমনানের ইমাম খোমেনি স্পেস সেন্টার থেকে স্যাটেলাইটটি উৎক্ষেপণ করা হয়। ‘জাফর’ নামের নতুন স্যাটেলাইটটি শান্তিপূর্ণ কাজের জন্য ব্যবহার করা হবে বলে দাবি তেহরানের। তবে ওয়াশিংটনের অভিযোগ, স্যাটেলাইটের ছদ্মবেশে ব্যালাস্টিক ক্ষেপণাস্ত্র পরীক্ষা চালানো হচ্ছে। এটির মাধ্যমে পরমাণু অস্ত্র পরীক্ষা আড়াল করা যাবে বলেও অভিযোগ তুলেছে ওয়াশিংটন। এর আগে এটাকে তেহরানের ‘উসকানিমূলক’ কর্মকান্ড বলেও হুশিয়ারি দেয় মার্কিন কর্মকর্তারা। স্যাটেলাইট উৎক্ষেপণের সঙ্গে সঙ্গে নতুন মডেলের মাঝারি পাল্লার ব্যালাস্টিক ক্ষেপণাস্ত্র উন্মোচন করেছে ইরানের রিভল্যুশনারি গার্ড কর্পস (আইআরজিসি)। নিজস্ব প্রযুক্তিতে তৈরি অত্যাধুনিক স্যাটেলাইটটি শনিবার মহাকাশে উৎক্ষেপণের কথা থাকলেও শেষ সময়ে এসে স্থগিত করা হয়। খুঁটিনাটি প্রযুক্তিগত ও বৈজ্ঞানিক পর্যবেক্ষণ শেষে ফের উৎক্ষেপণের ঘোষণা দেন ইরানি কর্মকর্তারা। রোববার এক টুইটার বার্তায় ইরানের তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তিমন্ত্রী মোহাম্মদ জাভেদ আজারি জাহরামি বলেন, ‘জাফর স্যাটেলাইটটি উৎক্ষেপণের জন্য সময় গণনা শুরু হয়েছে। মহান আল্লাহর নামে আগামী কয়েক ঘণ্টার মধ্যেই এটা সেমনান থেকে ৭,৪০০ কিলোমিটার গতিতে উৎক্ষেপণ করা হবে।’ তিনি বলেন, ইরানের নয়া স্যাটেলাইট ‘জাফার’ পৃথিবীর কক্ষপথে পৌঁছার পর সর্বপ্রথম জেনারেল কাসেম সোলাইমানির ছবি সম্প্রচার করবে। একইসঙ্গে ইরানিদের চারশ’টি অডিও বার্তা সম্প্রচারিত হবে এই স্যাটেলাইটের মাধ্যমে। ইরান সাধারণত ইসলামী বিপ¬ব দিবস উপলক্ষে ১ ফেব্রুয়ারিতে তার প্রযুক্তিগত অর্জনের বিষয়ে ঘোষণা দেয়। কিন্তু এ বছর উলে¬খযোগ্য ঘোষণা এসেছে আগেভাগেই। গত মঙ্গলবার ইরান বলেছে, জাফর নামের একটি স্যাটেলাইট কক্ষপথে পাঠাতে চায়। আর এর জন্য তারা ব্যবহার করবে স্যাটেলাইট বহনকারী নিজস্ব রকেট সিমর্ঘ। এর পরপরই প্রতিক্রিয়ায় গত বৃহস্পতিবার যুক্তরাষ্ট্রের পররাষ্ট্রমন্ত্রী মাইক পম্পেও বলেন, মহাকাশে স্যাটেলাইট উৎক্ষেপণের বিষয়ে যে সিদ্ধান্ত ইরান নিয়েছে তা স্পষ্টভাবেই পারমাণবিক বোমা বহনে সক্ষম ক্ষেপণাস্ত্রের বিষয়ে ইরানের ওপর থাকা জাতিসংঘের প্রস্তাবের লঙ্ঘন। এর দু’দিন পর শনিবার ইরানের তরফ থেকে নতুন আরেকটি উৎক্ষেপণের কথা ঘোষণা দেয়া হয়। মার্কিন অভিযোগের জবাবে ইরান বলেছে, তেহরান নয় বরং যুক্তরাষ্ট্রই পরমাণু চুক্তি থেকে বেরিয়ে গিয়ে জাতিসংঘের প্রস্তাব লঙ্ঘন করেছে। নিউইয়র্ক টাইমস লিখেছে, ইরান বহু বছর ধরে স্যাটেলাইট উৎক্ষেপণ নিয়ে কাজ করছে। যুক্তরাষ্ট্র ও তার মিত্রদের ধারণা, একই প্রযুক্তি দূরপাল্লার ক্ষেপণাস্ত্র তৈরিতেও কাজে লাগানো সম্ভব। গত নভেম্বর মাস থেকে যুক্তরাষ্ট্র ক্ষেপণাস্ত্রবিষয়ক গবেষণার সূত্রে ইরানের ওপর নিষেধাজ্ঞা আরোপ করেছে। মধ্যপ্রাচ্যে একমাত্র ইরানই সম্পূর্ণ নিজেদের প্রযুক্তিতে কার্যকর স্যাটেলাইট লঞ্চার তৈরি করছে। ২০০৯ সালে প্রথম উমিদ (আশা) নামে একটি স্যাটেলাইট মহাকাশে পাঠায় দেশটি। পরের বছরই ২০১০ সালে মহাকাশে প্রাণীবাহী যান পাঠায় তেহরান। ২০১৫ সালে পাঠায় ফজর (ঊষা) নামের আরেকটি স্যাটেলাইট। এই স্যাটেলাইটটি উঁচুমানের ছবি ধারণ করে পৃথিবীতে পাঠাচ্ছে। গত বছরের জানুয়ারিতে কারিগরি ত্রুটিতে ব্যর্থ হয় ইরানের তৈরি পায়াম স্যাটেলাইটের উৎক্ষেপণ। নতুন স্যাটেলাইট জাফর আকার ও ওজনের দিক থেকে পায়াম স্যাটেলাইটের মতো হলেও এতে নতুন কিছু বৈশিষ্ট্য যুক্ত করা হয়েছে। ৯০ কেজি ওজনের এই কৃত্রিম উপগ্রহে রয়েছে চারটি কালার ক্যামেরা। এসব ক্যামেরা ভূপৃষ্ঠের ছবি ধারণ করে তা পৃথিবীতে পাঠাবে।

পোড়াদহে মাদক প্রতিরোধ বিষয়ক জনসচেতনতামূলক মতবিনিময় ও আলোচনা সভা

কুষ্টিয়ার মিরপুর উপজেলার পোড়াদহে মাদক প্রতিরোধ বিষয়ক জনসচেতনতামূলক মতবিনিময় ও আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়েছে। গতকাল সকালে পোড়াদহ ইউনিয়ন মাদক প্রতিরোধ কমিটির আয়োজনে হাজরাহাটি যৌথ মাধ্যমিক বিদ্যালয়ে অনুষ্ঠিত  “মাদকমুক্ত পরিবার ও সমাজ হোক আমাদের অঙ্গীকার” শীর্ষক এই মতবিনিময় ও আলোচনা সভায় প্রধান অতিথি ছিলেন বাংলাদেশ মাদক প্রতিরোধ কমিটির প্রতিষ্ঠাতা ও সভাপতি হাসিবুর রহমান রিজু। প্রধান বক্তা ছিলেন মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ অধিদপ্তরের সহকারী উপ-পরিদর্শক জি এম হাফিজুর রহমান। বিশেষ অতিথি ছিলেন আহম্মদপুর ক্যাম্প ইনচার্জ মোঃ সোলাইমান, কুষ্টিয়া জেলা মাদক প্রতিরোধ কমিটির সাধারণ সম্পাদক এম সোহাগ হাসান, সহ-সভাপতি মীর আব্দুর রাজ্জাক। বক্তব্য রাখেন মিরপুর উপজেলা মাদক প্রতিরোধ কমিটির যুগ্ম আহ্বায়ক হাসানুর খান তাপস, পোড়াদহ ইউনিয়ন ৮নং ওয়ার্ড আওয়ামীলীগের সভাপতি নাসির উদ্দিন বিশ্বাস, পোড়াদহ মাদক প্রতিরোধ কমিটির সহ-সভাপতি আসাদুজ্জামান আসাদ, সাংগঠনিক সম্পাদক গোলজার আলী, ত্রাণ ও সমাজ কল্যাণ বিষয়ক সম্পাদক রিয়াসাদ আজিম রাসেল, নির্বাহী সদস্য শামসুল আলম, বিদ্যালয়ের দশম শ্রেণীর ছাত্রী তারিন আক্তার।  সভাপতিত্ব করেন পোড়াদহ ইউনিয়ন মাদক প্রতিরোধ কমিটির সভাপতি ডাঃ আব্দুল করিম। পরিচালনা করেন পোড়াদহ ইউনিয়ন মাদক প্রতিরোধ কমিটির সাধারণ সম্পাদক জহুরুল ইসলাম। এসময় স্থানীয় গণ্যমান্য ব্যক্তিবর্গ, অভিভাবক ও শিক্ষার্থীরা উপস্থিত ছিলেন। সংবাদ বিজ্ঞপ্তি

কাদেরকে রিজভী

ইভিএম ভেলকি দেখাতে গিয়ে নিজেই অসুস্থ হয়ে পড়েছিলেন

ঢাকা অফিস ॥ ঢাকার দুই সিটি নির্বাচনের আগে আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদেরের অসুস্থ হয়ে পড়া নিয়ে বিএনপির সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী বলেছেন, সিটির ভোটে ইভিএম ভেলকি দেখাতে গিয়ে নিজেই অসুস্থ হয়ে পড়েছিলেন। সোমবার রাজধানীর নয়াপল্টন বিএনপির কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে এক সংবাদ সম্মেলনে তিনি এ কথা বলেন। ওবায়দুল কাদেরকে মিথ্যার ফেরিওয়ালা আখ্যা দিয়ে রিজভী বলেন, বারবার অসুস্থ হওয়ার পরও আপনি মিথ্যার ফেরিওয়ালাই থেকে যাচ্ছেন। সৃষ্টিকর্তার কথা বিবেচনা করে কিছুটা হলেও সত্য কথা বলার চেষ্টা করুন। বিএনপির সিটি নির্বাচনের দাবি মামাবাড়ির আবদার- আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদেরের এই বক্তব্যের সমালোচনা করে রিজভী বলেন, আমি ওবায়দুল কাদেরকে বলবÑ আপনি ভোট কারচুপির এমনই মেকানিজম করেছিলেন যে, নিজেই অসুস্থ হয়ে পড়েছিলেন। আপনার সুস্থতা কামনা করি। কিন্তু জালিয়াতির মেশিন ইভিএম দিয়ে ভোটারদের যেভাবে সরষে ফুল দেখিয়েছেন, সে জন্য আপনাকে নিয়ে ভোটাররা কী ভাবছেন সেটি একটু ভেবে দেখুন। জিয়া ও খালেদা জিয়া এ মাটির সন্তান নয়– প্রধানমন্ত্রীর এমন বক্তব্যের কড়া প্রতিবাদ জানান রিজভী। বলেন, জিয়া ও খালেদা জিয়াই সত্যিকারের দেশপ্রেমিক। কেননা জিয়াউর রহমানই দেশের ক্রান্তিকালে রাষ্ট্র পরিচালনার দায়িত্ব নিয়ে দেশকে তলাবিহীন ঝুড়ির অপবাদ থেকে রক্ষা করেছিলেন। বিপন্ন গণতন্ত্রকে উদ্ধারে দেশনেত্রী বেগম খালেদা জিয়ার অবদান অবিস্মরণীয়। তিনি এখনও হারানো গণতন্ত্র এবং মানুষের বাক-ব্যক্তিস্বাধীনতার জন্য সংগ্রাম করে যাচ্ছেন। কোনো স্বৈরাচারের নিকট মাথানত করেননি বলেই তিনি আপসহীন নেত্রী আখ্যায় আখ্যায়িত হয়েছেন। তিনি সর্বদা দেশের মানুষের পাশেই আছেন, অবৈধ শাসকগোষ্ঠীর চোখ রাঙানিতে ভীত হয়ে বিদেশ পালিয়ে যাননি।

ভ্যালেন্টাইন’স ডে ইসলামের বিরুদ্ধে, ‘বোন দিবস’ ঘোষণা পাকিস্তানে

ঢাকা অফিস ॥ প্রায় সারা বিশ্বজুড়ে ১৪ ফেব্র“য়ারি পালিত হবে ভালবাসা দিবস। তবে পাকিস্তানে একপ্রকার নিষিদ্ধ ভালবাসা দিবস উদযাপন। দেশটি ভালবাসা দিবসকে ঘিরে নানা নিষেধাজ্ঞা জারি করেছে। সেইসঙ্গে দেশটির একটি বিশ্ববিদ্যালয় ভালোবাসা দিবসকে ‘বোন দিবস’ হিসেবে পালনের ঘোষণা দিয়েছে। ২০১৭ সালে পাকিস্তান মিডিয়া নিয়ন্ত্রক সংস্থা ভালবাসা দিবসকে নিয়ে কোন প্রকারের খবর প্রচার করা যাবে না বলে আইন জারি করে। টেলিভিশন চ্যানেলেও সম্প্রচার করা যাবে না ভালবাসা দিবসকে নিয়ে কোন অনুষ্ঠান। ভালবাসা দিবসের নামে ব্যাভিচার, নগ্নতা ও অশ্লীলতা ছড়ানো হচ্ছে অভিযোগ করে ২০১৭ সালে আদালতে মামলা দায়ের করেন আব্দুল ওয়াহিদ নামে এক ব্যক্তি। এরপর দেশটির এক আদালত ভালবাসা দিবসকে নিয়ে কোন প্রকারের খবর প্রচার করা যাবে না বলে রায় দেয়। পাকিস্তানের ফয়সালাবাদের ইউনির্ভার্সিটি অব এগ্রিকালচার ফেব্র“য়ারির ১৪ ‘ভালোবাসা দিবসের’ নিয়মকে পাল্টাতে গত বছর নতুন নিয়মের ঘোষণা দেয়। বিশ্ববিদ্যালয়টির কর্তৃপক্ষ ইসলামি ঐতিহ্যকে সমুন্নত রাখতে ভালোবাসা দিবসকে ‘সিস্টারস ডে বা বোন দিবস’ হিসেবে পালনের ঘোষণা দেয় গত বছর। দেশটির সংবাদমাধ্যম ডনের এক প্রতিবেদনে জানানো হয়, বিশ্ববিদ্যালয়টির উপাচার্য জাফর ইকবাল ১৪ ফেব্র“য়ারিকে ‘সিস্টারস ডে’ ঘোষণা দিয়েছেন। প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, এখন থেকে ১৪ ফেব্রুয়ারি সিস্টারস ডে পালনের সময় ক্যাম্পাসের নারী শিক্ষার্থীদের স্কার্ফ ও আবায়াহ (বোরকার মতো এক ধরনের পোশাক) উপহার দেয়ার সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে। উপাচার্য জাফর ইকবাল বলেন, ভালোবাসা দিবসকে সিস্টারস ডে হিসেবে পালন করাটা হবে পাকিস্তান ও ইসলামী সংস্কৃতির সঙ্গে সামঞ্জস্যপূর্ণ।’ তথ্যসূত্র: আল-জাজিরা, ডন, এক্সপ্রেস ইউকে।

আদা-রসুনে বিকল্প বাজারে নজর রাখছে সরকার – বাণিজ্যমন্ত্রী

ঢাকা অফিস ॥ নতুন করোনাভাইরাসের প্রাদুর্ভাব দীর্ঘমেয়াদী হলে এর প্রভাব দেশের বাজারে পড়বে বলে আশঙ্কা প্রকাশ করেছেন বাণিজ্যমন্ত্রী টিপু মুনশি। তিনি বলেছেন, প্রয়োজনে আদা-রসুন ও অন্যান্য মসলা আমদানির জন্য বিকল্প বাজারের দিকে সরকার ‘নজর রাখছে’। সোমবার সচিবালয়ে কানাডার সাচকাচোয়ান প্রদেশের কৃষিমন্ত্রী ডেভিড মারিটের নেতৃত্বে একটি প্রতিনিধিদলের সঙ্গে মতবিনিময়ের পর বাণিজ্যমন্ত্রী সাংবাদিকদের সঙ্গে এ বিষয়ে কথা বলেন। করোনাভাইরাসের প্রভাবে দেশের বাণিজ্যে কী পরিমাণ ক্ষতি হতে পারে জানতে চাইলে বণিজ্যমন্ত্রী বলেন, “এখনও বলার সময় হয়নি কী পরিমাণ ক্ষতি হতে পারে। আমাদের অনেক আইটেম আছে যেগুলো চায়নার ওপর নির্ভরশীল। বিশেষ করে রেডিমেট গার্মেন্টসের অধিকাংশ ফ্রেব্রিকস চায়না থেকে আসে, এটার ওপর প্রভাব পড়ছে কিনা দেখতে হবে। “তবে এখন পর্যন্ত খুব একটা সমস্যার সৃষ্টি হয়নি। কারণ এখন চীনে শুধুমাত্র একটি প্রদেশেই চাপ পড়েছে। এদিকে এখন ওদের বার্ষিক ছুটিও চলছে।” চীন থেকে পেঁয়াজ আমদানি করতে না পারলে সমস্যা হবে কিনা জানতে চাইলে বাণিজ্যমন্ত্রী বলেন, “এখন পেঁয়াজ আসছে মিয়ানমার, তুরস্ক, মিশর, পাকিস্তান থেকে। চীনের জন্য পেঁয়াজের বাজারে প্রভাব পড়বে না। “তবে রসুন-আদাসহ অন্যান্য মসলার সমস্যা হবে কিনা সেটি দেখছি। সমস্যা হলে আমাদের বিকল্প মার্কেটে যেতে হবে। এই মুহূর্তে তেমন পরিস্থিতি সৃষ্টি হয়নি। তবে আমরা লক্ষ্য রাখছি যে কি ধরনের সমম্যা আসতে পারে।” রসুনের দাম বেড়ে ২০০ টাকা হয়ে গেছে- এ বিষয়ে দৃষ্টি আকর্ষণ করলে বাণিজ্যমন্ত্রী বলেন, “আমরা এ বিষয়ে খুব সিরিয়াসলি নজর রাখছি। পেঁয়াজেও সুযোগ নিয়েছিল, এখনো ব্যবসায়ীরা সুযোগ নিচ্ছে। সমস্যা একটু হলেই তারা সুযোগ নেয়। “আগামীকাল নিজেরা বসে আমরা এ বিষয়টি ঠিক করতে চাই। আদা-রসুন নিয়ে কী করা যায় সেটা কালকে আলোচনা করব। কনসার্ন হয়ে পড়েছে মসলা-টসলাৃ। পেঁয়াজ নিয়ে চীনের উপর নির্ভরশীল নই, ১০ শতাংশও চীন থেকে আসছে না। আরো দুই তিনটা আইটেম আছে এটা কী দাঁড়ায় অন্য মার্কেট দেখতে হবে।“ চীনে নতুন করোনাভাইরাসের প্রাদুর্ভাব দেখা দেওয়ার পর গত ছয় সপ্তাহে অন্তত ৯১০ জনের মৃত্যু হয়েছে, আক্রান্তের সংখ্যা ছাড়িয়েছে ৪০ হাজার। বিভিন্ন কোম্পানি চীনে তাদের কার্যক্রম বন্ধ রেখেছে, চীনের সঙ্গে বিমান পরিবহন ও জাহাজ চলাচলে কড়াকড়ি আরোপ করায় বৈশ্বিক পণ্য পরিবহন ব্যবস্থা মারাত্মকভাবে ব্যাহত হচ্ছে। করোনাভাইরাসের বিস্তার নিয়ন্ত্রণে রাখতে চীন কয়েক দফা ছুটি বাড়িয়েছে, তাতে বাংলাদেশের পোশাক খাতের কাঁচামাল আনতে সমস্যা হবে কিনা জানতে চাইলে মন্ত্রী বলেন, “আমি মনে করি তারা আবার ছুটি বাড়ালে গার্মেন্ট সেক্টরে প্রভাব পড়বে। গার্মেন্ট সেক্টরের ব্যবসায়ীরা কী রিপোর্ট দেয় সেটা দেখতে হবে। তবে রাতারাতি এই সেক্টরে বিকল্প মার্কেট পাওয়া যাবে না।” করোনাভাইরাসের সম্ভাব্য প্রভাব নিয়ে এফবিসিসিআইকে তিন দিনের মধ্যে যে প্রতিবেদন দিতে বলা হয়েছিল, তা সরকার হাতে পেয়েছি কি না জানতে চাইলে মন্ত্রী বলেন, “গার্মেন্ট সেক্টরের যারা ব্যবসায়ী তারা জানেন যে এ সময়টায় তাদের কোনো আমদানি হবে না চায়নিজ নিউ ইয়ার বলে। ৃ ১৩ তারিখ সেখানকার ছুটি শেষ হলে বোঝা যাবে প্রভাব পড়বে কিনা।” সম্ভাব্য ক্ষতির বিষয়ে ব্যবসায়ী সংগঠনগুলোর কাছে জানতে চাওয়া হয়েছে জানিয়ে মন্ত্রী বলেন, “তারা এ বিষয়ে জানাতে দুই-তিন দিন সময় চেয়েছে। আশা করছি কালকের মধ্যে তারা হয়ত একটা আইডিয়া দিতে পারবে, সত্যিকার অর্থে কোনো ক্ষতি হবে কিনা।”

গাংনীতে হারপিক পানে অসুস্থ কলেজ ছাত্রীর মৃত্যু

গাংনী প্রতিনিধি ॥ মহেরপুরের গাংনী উপজেলার সাহারবাটী গ্রামে পিতা-মাতার উপর অভিমানে করে চাঁদনী খাতুন নামের এক কলেজ ছাত্রী হারপিক পান করে আত্মহত্যার চেষ্টা করেন। পরে দীর্ঘ দেড় মাস চিকিৎসা নেয়ার পর অবশেষে মারা গেছেন। আত্মহত্যাকারী চাঁদনী সাহারবাটী গ্রামের সাইফুল ইসলামের মেয়ে ও গাংনী মহিলা ডিগ্রী কলেজের দ্বাদশ শ্রেণীর ছাত্রী। গতকাল সোমবার সকালে রাজশাহী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় চাঁদনী মারা যান। স্থানীয়রা জানান চাঁদনী খাতুন প্রতিবেশী এক যুবককে ভালোবেসে ছিলেন। বিষয় তার পরিবারের জানতে পেয়ে তার মা ও বাবা বকুনি দেয়। এনিয়ে অভিমানে সে গত দেড় মাস পূর্বে ল্যাট্রিন পরিস্কারে ব্যবহৃত হারপিক পান করেন। এসময় পরিবার ও প্রতিবেশীরা তাকে উদ্ধার গাংনী উপজেলা স্বাস্থ্যকমপ্লেক্সে ভর্তি করেন। সেখানে তার শারীরিক অবস্থার পরিবর্তন না হলে, রাজশাহী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। সেখানে চিকিৎসাধীন অবস্থায় চাঁদনী মারা যান।

গাংনীতে মুক্তিযোদ্ধা নাসিরের ইন্তেকাল

গাংনী প্রতিনিধি ॥ মেহেরপুরের গাংনী উপজেলার বামন্দী-নিশিপুর গ্রামের বীর মুক্তিযোদ্ধা নাসির উদ্দীন ইন্তেকাল করেছেন (ইন্না..রাজিউন)। তিনি রোববার দিবাগত রাতে নিজ বাড়িতে বার্ধক্যজনিত কারণে মারা যান। গতকাল সোমবার দুপুরে বামন্দী-নিশিপুর গ্রামের বীর মুক্তিযোদ্ধা নাসির উদ্দীন পুস্পমাল্য অর্পন করা হয়। এ সময় গাংনী থানা পুলিশের একটি চৌকসদল তাকে গার্ডঅপ অনার প্রদান করে। এসময় রাষ্ট্রের পক্ষে গাংনী উপজেলা নির্বাহী অফিসার সালাম গ্রহণ করেন। পরে জানাজা শেষে স্থানীয় গোরস্থান ময়দানে দাফন সম্পন্ন হয়। এসময় উপস্থিত ছিলেন বীর মুক্তিযোদ্ধাসহ বিভিন্ন এলাকা থেকে আগত মুসলিম সম্প্রদায়ের মানুষ।

ঝিনাইদহে কৃষক হত্যা মামলায় ২ জন গ্রেফতার

ঝিনাইদহ প্রতিনিধি ॥ ঝিনাইদহ সদর উপজেলার মুরারীদহ গ্রামের কৃষক সবুজ হত্যা মামলার ২ আসামীকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ। সোমবার সকালে চুয়াডাঙ্গার দামুড়হুদা উপজেলার গোপালপুর গ্রাম থেকে তাদের গ্রেফতার করা হয়। গ্রেফতারকৃতরা হলো-মুরারীদহ গ্রামের মজিদ মন্ডলের ছেলে তছির মন্ডল (২৬) ও রাশেদ মন্ডল (২৩)। ঝিনাইদহের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (সদর সার্কেল) আবুল বাশার জানান, মোবাইল ট্র্যাকিং করে সবুজ হত্যা মামলার ২ আসামীর অবস্থান শনাক্ত করে তারা। পরে সে মোতাবেক ঝিনাইদহ সদর থানার ওসি তদন্ত এমদাদুল হক, অপারেশন আবুল খায়ের, এস আই সাখাওয়াত হোসেন সঙ্গীয় ফোর্স নিয়ে অভিযান চালিয়ে গোপালপুর গ্রামের একটি বাড়ী থেকে মামলার ২ নম্বর আসামী তছির মন্ডল ও ৪ নম্বর আসামী মজিদ মন্ডলকে গ্রেফতার করে। উল্লেখ্য, গত বৃহস্পতিবার ছাগলে ক্ষেত খাওয়াকে কেন্দ্র করে সদর উপজেলার মুরারীদহ গ্রামের কৃষক সবুজ হোসেনকে কুপিয়ে হত্যা করে একই প্রতিবেশী মজিদসহ আরও কয়েকজন। এ ঘটনায় পরদিন নিহতের পিতা ফজলুর রহমান বাদী হয়ে ঝিনাইদহ সদর থানায় ৭ জনকে আসামী করে একটি হত্যা মামলা দায়ের করে।

 

উতসর্গ ফাউন্ডেশন বাংলাদেশ এর ৪র্থ  বর্ষপূর্তি

কুষ্টিয়া জেলা শাখার উদ্যোগে অনুষ্ঠিত হলো বিনামূল্যে রক্তের গ্র“প পরীক্ষা,  কেক কাটা, বৃক্ষরোপন ও আলোচনা সভা

নিমতলা মাধ্যমিক বিদ্যালয়ে নাজনীন নাহার ও জাহিদের নেতৃত্বে প্রায় অর্ধসহস্র শিক্ষার্থীদের বিনামূল্যে রক্তের গ্র“প নির্ণয় করা হয়।  উল্লেখ্য যে বিগত ১৬ ডিসেম্বর, ১৯ তারিখে কুষ্টিয়া জেলা স্টেডিয়ামের সামনে,  ভেড়ামারা, দৌলতপুর ও মিরপুর উপজেলার ৪ টি স্থানে বিজয় দিবসে সহস্রাধিক মানুষের বিনামূল্যে রক্ত পরীক্ষা কর্মসূচির মাধ্যমে যাত্রা আরম্ভ করে উৎসর্গ ফাউন্ডেশন, বাংলাদেশ (কুষ্টিয়া জেলা শাখা)। এরই ধারাবাহিকতায়  পৌরসভার ২১টি ওয়ার্ডে ও সদর উপজেলার ১৪টি ইউনিয়নে পর্যায়ক্রমে কর্মসূচির ঘোষণা দেয় সংগঠনটি। উৎসর্গ ফাউন্ডেশন, কুষ্টিয়া জেলা শাখার সভাপতি আবুল কালাম আজাদ ও সহসভাপতি সোহেল রানার নির্দেশনা ও সাধারণ সম্পাদক মোঃ মুহাইমিনুর রহমান পললের সার্বিক তত্ত্বাবধানে কর্মসূচিতে সংগঠনটির ৩০ জনের একটি সেচ্ছাসেবী দল সকাল থেকে দুপুর ২ টা পর্যন্ত অত্র বিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীদের রক্তের গ্র“প পরীক্ষা করেন। এবং বিকাল ৪টা থেকে সন্ধ্যা ৬টা পর্যন্ত কুষ্টিয়া সরকারি কলেজ ছাত্রলীগের সভাপতি মো: স্বপন হোসেনকে সাথে রেখে র‌্যালি, কেক কাটা, বৃক্ষরোপন  ও আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়।  সংগঠনটির সাংগঠনিক সম্পাদক  মো: আল-মাহমুদ রহমানের নেতৃত্বে ও  দেশব্যাপি বিস্তৃত সামাজিক সংগঠনের উৎসর্গ ফাউন্ডেশন বাংলাদেশ কুষ্টিয়া জেলা শাখার কার্যক্রমের গতিশীলতা সৃষ্টিতে তরুণ সংগঠক ও সেচ্ছাসেবী ছেলেমেয়েদের এই উদ্যোগ। সংবাদ বিজ্ঞপ্তি

গাংনীতে সড়ক দুর্ঘটনায় ২ এসএসসি পরীক্ষার্থীসহ আহত-৩

গাংনী প্রতিনিধি ॥ মেহেরপুরের গাংনী উপজেলার সাহারবাটী ইউনিয়নের জোড়পুকুরিয়া গ্রামে দু’টি মোটরসাইকেলের মুখোমুখি সংঘর্ষে ২জন এসএসসি পরীক্ষার্থীসহ ৩জন আহত হয়েছে। আহত হলো জোড়পুকুরিয়া গ্রামের আব্দুল হান্নানের ছেলে রাজু আহম্মেদ (২৫), আতর আলীর ছেলে এসএসসি পরীক্ষার্থী রাজ (১৫) ও রাহাত আলীর ছেলে এসএসসি পরীক্ষার্থী ফিরোজ আহমেদ (১৫)। গতকাল সোমবার সকাল সাড়ে ১১টার দিকে জোড়পুকুরিয়া-ভোমরদহ সড়কে দু’টি মোটরসাইকেলের মুখোমুখি সংঘর্ষে আহতের ঘটনা ঘটে। স্থানীয়রা জানান রাজ ও ফিরোজ দু’বন্ধু সাহারবাটী ইউনিয়ন পরিষদ (হিজলবাড়ীয়া) থেকে প্রয়োজনীয় কাজ শেষে একটি মোটর সাইকেলযোগে ভোমরদহ হয়ে জোড়পুকুরিয়া গ্রামে আসছিল। তারা জোড়পুকুরিয়া গোরস্থান ময়দানের নিকট পৌঁছালে, বিপরীত (জোড়পুকুরিয়া) দিক থেকে মোটরসাইকেল আরোহী রাজুর মোটর সাইকেলের সাথে মুখোমুখি ধাক্কা লাগে। ওই ধাক্কায় তিন জনই সড়কে ছিটকে পড়ে আহত হয়। পথচারীরা তাদের উদ্ধার গাংনী উপজেলা স্বাস্থ্যকমপ্লেক্সে নেয়। এসময় রাজুর শারীরিক অবস্থার অবনতি হওয়ায় তাকে কুষ্টিয়া মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নেয়া হয়। কয়েকজন পথচারী  জানান দু’টি মোটরসাইকেলের দ্রুত গতি থাকায় নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে দূর্ঘটনা ঘটে।

১৩ দফা বাস্তবায়নের দাবিতে

আবারও ইবি কর্মকর্তা সমিতির কর্মবিরতী শুরু

কুষ্টিয়া ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয় কর্মকর্তাদের দীর্ঘদিনের ন্যায় সঙ্গত ১৩ দফা বাস্তবায়নের দাবিতে কর্মবিরতী শুরু করেছে ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয় কর্মকর্তা সমিতি। গতকাল সোমবার বেলা ১১টায় প্রশাসন ভবন চত্বরে কর্মকর্তাদের স্বতস্ফূর্ত অংশগ্রহনে কর্মবিরতীর এ কর্মসূচি শুরু করা হয়। কর্মসূচি চলাকালে সমিতির সভাপতি মোঃ শামছুল ইসলাম জোহার সভাপতিত্বে এবং সাধারণ সম্পাদক মীর মোঃ মোর্শেদুর রহমানের পরিচালনায় অনুষ্ঠিত সমাবেশে বক্তব্য রাখেন সমিতির যুগ্ম-সম্পাদক মোঃ রাশিদুজ্জামান খান টুটুল, কোষাধ্যক্ষ মোঃ আব্দুল লতিফ, নির্বাহী সদস্য মোঃ গোলাম হোসেন, আব্দুর রাজ্জাক ও মোঃ উকিল উদ্দিন। সভায় বক্তারা বলেন, ১৩ দফা আমাদের ন্যায় সঙ্গত এবং প্রাণের দাবি। প্রশাসনের পক্ষ থেকে এ দাবি বাস্তবায়নে আমাদেরকে বারংবার আশ্বাস দেয়া হলেও আজ পর্যন্ত একটি দাবিও মানা হয়নি। বাধ্য হয়ে আমাদেরকে আবারও আন্দোলনে নামতে হলো। তাঁরা বলেন, আজ থেকে বুধবার পর্যন্ত প্রতিদিন বেলা ১১-১২ পর্যন্ত ১ ঘন্টা করে কর্মবিরতী চলবে। এতেও যদি প্রশাসনের পক্ষ থেকে কোন সিদ্ধান্ত না পাওয়া যায় তাহলে আগামী সপ্তাহ থেকে প্রতিদিন ২ ঘন্টা করে কর্মবিরতী চলবে। প্রয়োজনে লাগাতার কর্মবিরতীসহ বিভিন্ন কর্মসূচি গ্রহণ করা হবে। তারা আরও বলেন, আমরা আবারও আন্দোলনে নেমেছি, দাবি আদায় না হওয়া পর্যন্ত আন্দোলনেই থাকবো। সংবাদ বিজ্ঞপ্তি

দৌলতপুরে আইন-শৃঙ্খলা কমিটির সভা অনুষ্ঠিত

দৌলতপর প্রতিনিধি ॥ কুষ্টিয়ার দৌলতপুরে চোরাচালান নিরোধ, নারী ও শিশু নির্যাতন প্রতিরোধ এবং আইন-শৃঙ্খলা কমিটির সভা অনুষ্ঠিত হয়েছে। গতকাল সোমবার বেলা সাড়ে ১১টায় দৌলতপুর উপজেলা নির্বাহী অফিসার শারমিন আক্তারের সভাপতিত্বে উপজেলা পরিষদ কনফারেন্স রুমে এ সভা অনুষ্ঠিত হয়। সভায় বক্তব্য রাখেন- দৌলতপুর উপজেলা চেয়ারম্যান এ্যাড. এজাজ আহমেদ মামুন, দৌলতপুর সহকারী কমিশনার (ভূমি) মো. আজগর আলী, মথুরাপুর ইউপি চেয়ারম্যান সরদার হাসিম উদ্দিন হাসু, খলিশাকুন্ডি ইউপি চেয়ারম্যান সিরাজুল ইসলাম, দৌলতপুর ইউপি চেয়ারম্যান মহিউল ইসলাম মহি, দৌলতপুর সমাজসেবা অফিসার মো. ছানোয়ার আলী, প্রাগপুর বিজিবি কোম্পানী কমান্ডার সুবেদার সুবোদ পাল, দৌলতপুর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের ডাক্তার পূর্ণপমা পূজা ও দৌলতপুর প্রেসক্লাবের সাধারণ সম্পাদক শরীফুল ইসলাম। সভায় উপজেলা পরিষদের ভাইস চেয়ারম্যান সাক্কির আহমেদ ও মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান সোনালী খাতুন আলেয়াসহ বিভিন্ন দপ্তরের কর্মকর্তা ও সুধীজন উপস্থিত ছিলেন। সভায় বিগত সভার সার্বিক বিষয় তুলে ধরে বক্তব্য রাখেন, দৌলতপুর সহকারী কমিশনার (ভূমি) মো. আজগর আলী। সভাপতির বক্তব্যে দৌলতপুর উপজেলা নির্বাহী অফিসার শারমিন আক্তার পদ্মা নদীসহ বিভিন্ন নদীতে অবৈধভাবে বালি উত্তোলন বন্ধে প্রশাসনিক ব্যবস্থা গ্রহণ, বিভিন্ন ইটভাটায় কয়লার পরিবর্তে জ¦ালানি কাঠ ব্যবহার বন্ধে ভ্রাম্যমান আদালত পরিচালনা, শব্দ দুষন বন্ধে ব্যবস্থা গ্রহণ, ড্রাম ট্রাক বন্ধে আইনগত ব্যবস্থা গ্রহণ, দৌলতপুর স্বাস্থ্যকমপ্লেক্স চত্বরে দালাল মুক্ত ও স্বাস্থ্যকমপ্লেক্স চত্বরের পরিবেশ বজায় রাখাসহ আইন শৃঙ্খলা পরিস্থিতি স্বাভাবিক ও মাদক চোরাচালান বন্ধে বিজিবিকে আরও সক্রিয় ভূমিকা পালনের নির্দেশনা প্রদান করেন।

কুষ্টিয়া শহরের ২০ ও ২১ নং ওয়ার্ডের রাস্তা ও ড্র্রেণ নির্মাণ কাজের উদ্বোধন করলেন পৌর মেয়র আনোয়ার আলী

গতকাল সকালে কুষ্টিয়া পৌরসভার ২০নং ওয়ার্ডের ফুডগোডাউন গুচ্ছগ্রাম ও ২১ নং ওয়ার্ডের লাহিনী বটতলা বস্তি এবং লাহিনী মধ্যপাড়ার রাস্তা ও ড্রেনের নির্মান কাজের উদ্বোধন করলেন কুষ্টিয়া পৌরসভার জননন্দিত মেয়র আনোয়ার আলী। উদ্বোধনকালে জননন্দিত মেয়র আনোয়ার আলী বলেন, বাংলাদেশ সরকার ও এডিবি এবং এফআইডি সহায়তাপুষ্ট তৃতীয় নগর পরিচালন ও অবকাঠামো উন্নতি করণ  (সেক্টর) প্রকল্পের আওতায় বেসিক সার্ভিস টু দি আরবান পুয়র খাতে বস্তি উন্নয়ন কমিটি (সিচ) এর মাধ্যমে কুষ্টিয়া পৌরসভার বাস্তবায়নে  ২০ নং ওয়ার্ডের ফুডগোডাউন গুচ্চগ্রাম বস্তিতে ৭৮৭ মিটার আরসিসি রাস্তা, ৫৬০ মিটার ড্রেন, ৯টি টয়লেট, ৬টি হাত টিউবয়েল ও ৩টি সোলার লাইট স্থাপন করা হবে। এছাড়াও ২১ নং ওয়ার্ডের রাহিনী বটতলা বস্তিতে ১৩৫৮ মিটার আরসিসি রাস্তা, ৪টি টয়লেট সহ ২৩টি টিউবয়েল এবং লাহিনী মধ্যপাড়ায় ১২৮৯ মিটার রাস্তা, ১৪৭ মিটার ড্রেন, ৫টি টয়লেট, ১৩টি টিউবয়েল স্থাপন করা হবে। তিনি আরোও বলেন, পৌর এলাকায় ২১ টি ওয়ার্ডে ৫১ টি সিডির মাধ্যমে অবকাঠামো উন্নয়ন সহ দারিদ্র দূরিকরনের জন্য হাতের কাজ শেখানোর পাশাপাশি ব্যবসা অনুদান সহায়তা, দারিদ্র ও মেধাবী ছাত্র-ছাত্রীদের শিক্ষাবৃত্তি এবং মায়েদের পুষ্টি সহায়তা প্রদান করা হচ্ছে। আপনাদের সহযোগীতায়  পৌরবাসীর সকল নাগরিক সেবা প্রদানের জন্য কাজ করে যাচ্ছি। এসময় উপস্থিত ছিলেন পৌরসভার প্যানেল অব মেয়র-০১, মতিয়ার রহমান মজুন, প্যানেল অব মেয়র-০৩ পারভিন হোসেন, ২০ নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর এজাজুল হাকিম, ২১ নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর ইসলাম শেখ, নির্বাহী প্রকৌশলী রবিউল ইসলাম, বস্তি উন্নয়ন কর্মকর্তা একেএম মঞ্জুরুল ইসলাম, প্রান্তীক জনগোষ্ঠীর জীবনমান উন্নয়ন  প্রকল্পের টাউন ম্যানেজার সেলিম মোড়লসহ স্থানীয় গন্যমান্য ব্যক্তিবর্গ। সংবাদ বিজ্ঞপ্তি

করোনাভাইরাসের ঝুঁকিতে থাকা ২০ দেশের তালিকায় ভারত

ঢাকা অফিস ॥ বিশ্বের যে ২০ টি দেশে করোনাভাইরাস সবচেয়ে বেশি প্রভাব ফেলার আশঙ্কা আছে সে তালিকায় আছে ভারত। তালিকায় ভারতের অবস্থান ১৭ নম্বরে। জার্মানির এক বিশ্ববিদ্যালয়ের সমীক্ষায় এ তথ্য বেরিয়ে এসেছে। এনডিটিভি জানিয়েছে, হামবোল্ট বিশ্ববিদ্যালয় ও রবার্ট কচ ইনস্টিটিউটের বিজ্ঞানীদের এ সমীক্ষার সংক্রমণ সূচকে সবার ওপরে আছে থাইল্যান্ড। তার ঠিক পরেই আছে জাপান এবং দক্ষিণ কোরিয়া। যে দেশগুলোতে করোনাভাইরাস আক্রান্তের সংখ্যা ইতোমধ্যেই ২০ ছাড়িয়েছে। সমীক্ষার প্রয়োজনে আকাশপথে চীনের সঙ্গে বিভিন্ন দেশের বিমানবন্দরের যোগাযোগের বিষয়টি নিয়ে গবেষণা করা হয়েছে। বিশ্ববিদ্যালয়ের পক্ষ থেকে জানানো হয়েছিল যে, মোট ৪ হাজার বিমানবন্দরের সঙ্গে চীনের সরাসরি যোগাযোগ রয়েছে। আর সেই দিকটি খতিয়ে দেখেই একটি মাপকাঠি তৈরি করেছে বিশ্ববিদ্যালয়টি। এ মাপকাঠির সূচকেই ভারতে করোনাভাইরাস সংক্রমণের আশঙ্কা ০.২১৯%। সমীক্ষায় বলা হয়েছে, দিলি¬র ইন্দিরা গান্ধী আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরের সংক্রমণের আশঙ্কা সবচেয়ে বেশি। এ বিমানবন্দরের সংক্রমণ সূচক ০.০৬৬%। মুম্বইয়ের ছত্রপতি শিবাজি আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরের সংক্রমণ সূচক ০.০৩৪%। এর পরই আছে কলকাতা বিমানবন্দর। পাশাপাশি বেঙ্গালুরু, চেন্নাই, হায়দরাবাদ ও কোচি বিমানবন্দরেও আছে সংক্রমণ আশঙ্কা। চীন থেকে ভারত ও অন্যান্য শহরের একজনের গন্তব্যের পরিপ্রেক্ষিতে সমীক্ষাটি করা হয়েছে। আকাশপথে যাতায়াতের প্রেক্ষিত বিচার করে পর্যালোচনা করা হয়েছে সংক্রমণের মাত্রা। ব্যস্ত বিমানবন্দর ও সংক্রমিত যাত্রীর পরিসংখ্যান রাখা হয়েছে বিচার্য বিষয় হিসেবে। সংক্রমণ ঠেকাতে ভারতের পররাষ্ট্রমন্ত্রণালয় বৈধ ভিসা থাকলেও চীন থেকে কারো ভারতে গমণের ওপর নিষেধাজ্ঞা জারি করেছে। চীনা নাগরিক বা পর্যটক, সেদেশ থেকে ভারতে যাওয়ার ওপরও আছে সাময়িক নিষেধাজ্ঞা। ভারত যে করোনার প্রভাবমুক্ত নয়, তার প্রমাণ ইতোমধ্যেই মিলেছে কেরালায়। চীনের উহান ফেরত তিনজনের দেহে করোনার জীবাণু মিলেছে। চীন থেকে ফেরা আরও প্রায় ২০০০ ছাত্রছাত্রীকে পর্যবেক্ষণে রাখা হয়েছে। তাদের মধ্যেও কারও কারও শরীরে সংক্রমণের সম্ভাবনা আছে। এমন পরিস্থিতিতে জার্মানির এ সমীক্ষা ভারতের উদ্বেগ আরো বাড়াল।

মানসিকভাবে সুস্থ প্রজন্মই পারে জাতিকে সার্বিকভাবে উন্নত করতে – তথ্যমন্ত্রী

ঢাকা অফিস ॥ তথ্যমন্ত্রী ড. হাছান মাহমুদ বলেছেন, আমাদের নতুন প্রজন্মের সুস্থ মানসিক বিকাশের জন্য তাদেরকে সৃজনশীল বই পড়ার ব্যাপারে উৎসাহী করে তুলতে হবে। কেননা, মানসিকভাবে সুস্থ প্রজন্মই পারে একটি দেশ ও জাতিকে সার্বিকভাবে উন্নত করে তুলতে। সোমবার বিকেলে এমএ আজিজ স্টেডিয়াম সংলগ্ন জিমনাসিয়াম হলে চট্টগ্রামে অমর একুশের বইমেলা উদ্বোধনকালে তিনি এ কথা বলেন। চট্টগ্রাম সিটি কর্পোরেশনের আয়োজনে মুজিব বর্ষ উপলক্ষে বঙ্গবন্ধুকে নিবেদিত বইমেলার উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন মেয়র আ জ ম নাছির উদ্দিন। বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের যুগ্ন সাধারণ সম্পাদক ড. হাছান মাহমুদ বলেন, বঙ্গবন্ধু কন্যা মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর শেখ হাসিনার লক্ষ্য হচ্ছে ২০৪১ সালের মধ্যে দেশকে মেধা, মনন ও অর্থনৈতিকভাবে উন্নত রাষ্ট্রের কাতারে নিয়ে যাওয়া। আমরা আরো আগেই এ লক্ষ্য অর্জন করতে পারতাম। গত ১১ বছরে দেশ আরো বহুদূর এগিয়ে যেতে পারতো, যদি দেশে নেতিবাচক ও সংঘাতের রাজনীতি না থাকতো। ঢাকা সিটি কর্পোরেশনের নির্বাচন নিয়ে বিএনপির বিদেশি কূটনীতিকদের কাছে নালিশ জানানোর প্রসঙ্গ উল্লেখ করে মন্ত্রী বলেন নির্বাচন নিয়ে তাদের যদি নালিশ থাকলে তারা নির্বাচন কমিশনে যেতে পারতো, আদালতে যেতে পারতো। ভোটারদের কাছে নালিশ জানাতে পারতো। কিন্তু তা না করে বিদেশিদের কাছে নালিশ দিয়ে বিদেশে বিএনপি দেশের ভাবমূর্তি ক্ষুণেœর অপচেষ্টা করছে এবং এটা তারা বারবারই করছে। তারা বিদেশি রাষ্ট্রগুলোকে বাংলাদেশের অভ্যন্তরীণ বিষয়ে হস্তক্ষেপ করার সুযোগ করে দিতে চায়। এটি কখনো আমাদের দেশের জন্য সম্মানজনক নয়। তিনি এ ধরণের কর্মের মাধ্যমে দেশ ও জাতিকে আর ছোটো না কার জন্য বিএনপির প্রতি অনুরোধ জানান। চট্টগ্রাম সিটি কর্পোরেশনের উদ্যোগে দ্বিতীয়বারের মতো সম্মিলিত বইমেলা আয়োজনের জন্য চট্টগ্রাম সিটি কর্পোরেশনকে ধন্যবাদ জানিয়ে ড. হাছান বলেন, আগে বিক্ষিপ্ত বিচ্ছিন্নভাবে বইমেলা হতো। এতে সাধারণ্যের মধ্যে আগ্রহ কম ছিল। গতবছর থেকে সবাইকে নিয়ে মেলা আয়োজনের কারণে মানুষের আগ্রহ বেড়েছে। এবারের মেলা গতবারের চেয়েও গুছানো বলে তিনি মন্তব্য করেন। একটি সময় এটি ঢাকার বইমেলার মতো অনেক বড় আঙ্গিকে আয়োজন হবে বলে তিনি আশাপ্রকাশ করেন। তিনি বলেন, বাংলা একাডেমি চত্বরে চাদর বিছিয়ে বইমেলার যাত্রা শুরু হয়েছিল। এখন সেখানে ৮ লক্ষ বর্গফুট এলাকজুড়ে মেলা হচ্ছে। মন্ত্রী বলেন, চার/পাঁচ হাজার বছর আগেও মানুষ ও অন্য প্রাণীর মধ্যে তেমন পার্থক্য ছিল না। মানুষের সাথে প্রাণীর লড়াই হতো। অনেক প্রাণী আছে যারা মানুষের চেয়ে অনেক শক্তিশালী। কিন্তু মানুষ তার বুদ্ধিমত্তা দিয়ে আস্তে আস্তে অন্যান্য প্রাণী থেকে বহুদূর এগিয়ে গেছে। মানুষ তার আবিষ্কার লিপিবদ্ধ করে সংরক্ষণে রাখে এবং এই সংরক্ষণের বড় মাধ্যম হচ্ছে বই। পরে আবার সেই ডকুমেন্টেড বিষয়গুলোকে চর্চার মাধ্যমে চরম উৎকর্ষ সাধন করেছে। এতেই প্রাণী থেকে মানুষ তার শ্রেষ্ঠত্ব অর্জন করেছে। যেমন ১৫০ বছর আগে মানুষ গাড়ি বানিয়েছিল। পরে অনেক গবেষণার পর গাড়ি আজকের পর্যায়ে এসেছে। একইভাবে বিমান আবিষ্কারের পরও ক্রমাগত গবেষণার মধ্য দিয়ে বিমান বর্তমান অবস্থানে উঠে এসেছে। মন্ত্রী বলেন, বিশে^ বিজ্ঞান ও প্রযুক্তির যথেষ্ট অগ্রগতি হয়েছে। কিন্তু এতে অনেকটা প্রযুক্তিনির্ভর হয়ে পড়ছে মানুষ। আত্মকেন্দ্রিক হয়ে যাচ্ছে। এ আত্মকেন্দ্রিকতায় মানুষের স্বাভাবিক মূল্যবোধ লোপ পাচ্ছে। কিন্তু কোনোভাবেই মানুষের মানবিক মূল্যবোধকে নষ্ট হতে দেয়া যাবে না। এ মানবিক মূল্যবোধকে ধরে রাখা ও এর উৎকর্ষ সাধনের জন্য মানুষকে সৃজনশীল বই পড়তে হবে। ড. হাছান বলেন, আজকাল অনেক অভিভাবক তাদের সন্তানের হাতে স্মার্টফোন তুলে দিচ্ছেন। কিন্তু যিনি এর প্রবক্তা সেই বিল গেটস ১৬ বছর পূর্ণ হওয়ার আগে তাঁর কোনো সন্তানের হাতে স্মার্টফোন তুলে দেননি। আমরা স্মার্ট ফ্যামিলিগুলো বুঝতেও পারি না শিশুসন্তানের হাতে স্মার্টফোন তুলে দিয়ে আমরা তার কতো বড় ক্ষতি করছি। সে এ ফোনের মাধ্যমে ইন্টারনেটে ঢুকে যা ইচ্ছে তা দেখতে পারছে। মন্ত্রী নিজের ছাত্রজীবনের কথা স্মরণ করে বলেন, আমার বাসা ছিল হেমসেন লেনে। সেখান থেকে কয়েক বন্ধু মিলে হেঁটে মুসলিম হাইস্কুলে যেতাম। আমাদের কিছু বন্ধু ছিল যারা হাঁটতে হাঁটতে বই পড়তো। আমাদের কাজ ছিল এ চলন্ত অবস্থায় বই পড়তে গিয়ে তারা যেন নালা-নর্দমায় পড়ে না যায় তা দেখা। আজকাল এরকম দৃশ্য দেখাই যায় না। তিনি বলেন, আমাদের ছোটোবেলায় দস্যু বনহুর মাসুদ রানার মতো কিছু আকর্ষক ধারাবাহিক বই ছিল। কিন্তু সেগুলোর মধ্যে শিক্ষনীয় তেমন কিছু ছিল না। এসবের পাশাপাশি শিক্ষনীয় এবং নৈতিক ও মানবিক মূল্যবোধসম্পন্ন বহু বই ছিল। এসব বই পড়েই মানবিক মানুষ হওয়া যায়। তিনি ক্ষয়িষ্ণু মূল্যবোধ থেকে বের হয়ে মানবিক মূল্যবোধসম্পন্ন প্রজন্ম গড়ে তুলতে শিশুদের বই পড়ার উৎসাহ সৃষ্টির জন্য সবার প্রতি আহ্বান জানিয়ে বলেন, খেয়াল রাখতে হবে শিশুদের হাতে তুলে দেয়া এসব বই যেন মানবিক মূল্যবোধসম্পন্ন হয়। তথ্যমন্ত্রী বলেন, প্রধানমন্ত্রীর স্বপ্ন ২০৪১ সালের বাংলাদেশ হতে হবে অর্থনৈতিক ও মানবিক মূল্যবোধের উন্নত একটি রাষ্ট্র, যেটি দেখে বিশে^র উন্নত রাষ্ট্রগুলো আমাদের অনুকরণ করবে। মন্ত্রী আয়োজকদের পরামর্শ দিয়ে বলেন, সিটি কর্পোরেশনেরও অনেক স্কুল কলেজ আছে। এগুলোসহ স্কুল-কলেজের শিক্ষার্থীদের বইমেলায় নিয়ে আসার ব্যবস্থা করা এবং বই পড়ার ক্ষেত্রে তাদের পুরস্কৃত করার উদ্যোগ নেয়া যেতে পারে। এতে তারা বই পড়ায় উৎসাহী হয়ে উঠবে। সভাপতির বক্তব্যে মেয়র বলেন, চট্টগ্রামে এটি দ্বিতীয় সম্মিলিত মেলা। ভবিষ্যতে এ মেলাকে আরো বিস্তৃত করার পরিকল্পনা রয়েছে। তিনি শিক্ষার্থীদের বই পড়তে উৎসাহী করে তুলতে মন্ত্রীর পরামর্শকে সাধুবাদ জানিয়ে এ উদ্যোগ গ্রহণ করা হবে বলে জানান। অনুষ্ঠানে স্বাগত বক্তব্য রাখেন সিটি কর্পোরেশনের প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা শামসুদ্দোহা। অন্যান্যের মধ্যে বক্তব্য রাখেন কাউন্সিলর নাজমুল হক ডিউক ও মুক্তিযোদ্ধা শাহ আলম নিপু। এর আগে, জিমনাসিয়াম প্রাঙ্গণে জাতীয় পতাকা উত্তোলন ও জাতীয় সঙ্গীতের মাধ্যমে ২০ দিনব্যাপী অমর একুশে বইমেলা ২০২০-এর আনুষ্ঠানিক উদ্বোধন করা হয়।

‘ই-পাসপোর্ট চালু করায় বাংলাদেশ দক্ষিণ এশিয়ায় প্রথম’

ঢাকা অফিস ॥ ই-পাসপোর্ট চালু করায় বাংলাদেশ দক্ষিণ এশিয়ায় প্রথম বলে জানিয়েছেন স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান কামাল। তিনি বলেন, ই-পাসপোর্ট চালু করায় বাংলাদেশ বর্তমানে দক্ষিণ এশিয়ায় প্রথম এবং বিশ্বে ১১১তম স্থানে রয়েছে। আগামী পাঁচ বছরের মধ্যে দেশের সকল মেশিন রিডেবল পাসপোর্ট (এমআরপি) আন্তর্জাতিকভাবে স্বীকৃত ই-পাসপোর্ট করা হবে। স্পিকার শিরীন শারমিন চৌধুরীর সভাপতিত্বে সোমবার সংসদে সরকার দলীয় এমপি শামসুন নাহারের এক প্রশ্নের জবাবে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী সংসদে এসব কথা বলেন। স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, ই-পাসপোর্টের পাশাপাশি এমআরপি পাসপোর্ট যুগোপৎভাবে চলু থাকবে। অগ্রাধিকার ভিত্তিতে ঢাকায় তিনটি ই পার্সপোর্ট চালু করা হয়েছে। আগামী ১৮ মাসের মধ্যে পর্যায়ক্রমে দেশের সব বিভাগীয় পাসপোর্ট ও ভিসা অফিস এবং আঞ্চলিক পাসপোর্ট অফিস সমূহে ই -পার্সপোর্ট চালু করা হবে। ই পাসপোর্টের জন্য বাংলাদেশে আবেদনকারীদের ৪৮ পৃষ্ঠার ৫ বছর মেয়াদী সাধারণ ই-পাসপোর্টের জন্য ফি ৩ হাজার টাকা, জরুরি ৫হাজার ৫শ’ টাকা এবং অতিব জরুরি ৭ হাজার ৫শ’ টাকা নির্ধারণ করা হয়েছে। এছাড়া ১০ বছর মেয়াদী সাধারণ ই পাসপোর্টের জন্য ৫ হাজার, জরুরি ৭হাজার এবং অতিব জরুরি ৯ হাজার টাকা নির্ধারণ করা হয়েছে। মন্ত্রী জানান, ৬৪ পৃষ্ঠার ৫ বছর মেয়াদী সাধারণ ই-পাসপোর্টের জন্য ফি ৫হাজার ৫শ’, জরুরি ৭ হাজার ৫শ’এবং অতিব জররুরি ১০ হাজার ৫শ’ টাকা নির্ধারণ করা হয়েছে। এছাড়া ১০ বছর মেয়াদী সাধারণ ই-পাসপোর্টের জন্য ৭ হাজার, জরুরি ৯ হাজার এবং অতিব জরুরি ১২ হাজার টাকা নির্ধারণ করা হয়েছে। মন্ত্রী জানান, বিদেশে অবস্থানরত ৫ বছর মেয়াদী ৪৮ পৃষ্ঠার সাধারণ ই-পাসপোর্টের জন্য ১০০ মার্কিন ডলার ও জরুরি ১৫০ মার্কিন ডলার ১০ বছর মেয়াদী সাধারণ ই-পাসপোর্টের জন্য ১২৫ মার্কিন ডলার এবং জরুরি ১৭৫ মার্কিন ডলার নির্ধারণ করা হয়েছে। তবে শ্রমিক ও ছাত্রদের জন্য বিদেশে অবস্থানরত ৫ বছর মেয়াদী ৪৮ পৃষ্ঠার সাধারণ ই-পাসপোর্টের জন্য ৩০ মার্কিন ডলার ও জরুরি ৪৫ মার্কিন ডলার ১০ বছর মেয়াদী সাধারণ ই-পাসপোর্টের জন্য ৫০ মার্কিন ডলার এবং জরুরি ৭৫ মার্কিন ডলার নির্ধারণ করা হয়েছে বলে মন্ত্রী সংসদে জানান। ৬৪ পৃষ্ঠার ৫ বছর মেয়াদী সাধারণ ই-পাসপোর্টের জন্য ১৫০ মার্কিন ডলার ও জরুরি ২০০ ইউএসডি ১০ বছরমেয়াদী সাধারণ ই-পাসপোর্টের জন্য ১৭৫ ইউএসডি এবং জরুরি ২২৫ মার্কিন ডলার নির্ধারণ করা হয়েছে। এছাড়া শ্রমিক ও ছাত্রদের জন্য বিদেশে অবস্থানরত ৫ বছর মেয়াদী ৬৪ পৃষ্ঠার সাধারণ ই-পাসপোর্টের জন্য ১৫০ মার্কিন ডলার ও জরুরি ২০০ মার্কিন ডলার ১০ বছর মেয়াদী সাধারণ ই-পাসপোর্টের জন্য ১৭৫ মাকির্ন ডলার এবং জরুরি ২২৫ মার্কিন ডলার নির্ধারণ করা হয়েছে বলে মন্ত্রী সংসদকে জানান।

‘তথাকথিত আলেমদের’ তালিকা করতে বললেন মন্ত্রী মোজাম্মেল

ঢাকা অফিস ॥ ওয়াজের নামে ‘ইসলামবিরোধী’ প্রচারের বিষয়ে ধর্ম ও স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়কে সজাগ থাকার আহ্বান জানিয়ে ‘তথাকথিত আলেমদের’ তালিকা করার পরামর্শ দিয়েছেন মুক্তিযুদ্ধবিষয়কমন্ত্রী আ ক ম মোজাম্মেল হক। সম্প্রতি কিছু ওয়াজ মাহফিলে বিতর্কিত বক্তব্য নিয়ে আলোচনার মধ্যে সোমবার সংসদে রাষ্ট্রপতির ভাষণের উপর আলোচনায় তিনি এ পরামর্শ দেন। মোজাম্মেল বলেন, “ধর্মীয় সভা হওয়া উচিত, কিন্তু ধর্মসভার নামে ইসলামবিরোধী যেসব অপপ্রচার হচ্ছে, সেদিকে ধর্ম  ও স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়কে সজাগ থাকতে হবে। তথাকথিত আলেমনামধারীদের তালিকা তৈরি করে তাদের বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থা নিতে হবে।” বাংলাদেশে রাজনৈতিক দলগুলোর মধ্যে একমাত্র আওয়ামী লীগই ইসলামের পৃষ্ঠপোষকতা করে এসেছে দাবি করে তিনি বলেন, “আওয়ামী লীগ ইসলামবিরোধী- এই মিথ্যাচারের বিরুদ্ধে সচেতন হওয়া উচিৎ।” গণফোরাম সভাপতি কামাল হোসেনের সমালোচনা করে মোজাম্মেল বলেন, “অনেকে বলেন তিনি সংবিধানের প্রণেতা। বাস্তবতা যাই হোক, তিনি আইনমন্ত্রী থাকাকালীন সংবিধান প্রণীত হয়েছিল। তিনি সে কমিটির আহ্বায়ক ছিলেন। নিঃসন্দেহে সে কৃতিত্বের অধিকারী হতেই পারেন। “মুক্তিযুদ্ধের সময় তার অবস্থান যে রহস্যজনক ছিল, যাই হোক আমরা সেই কথা বলতে চাই না। তার এক মেয়ের জামাতা আছে বার্গম্যান, তিনিও সবসময় অবিরতভাবে বাংলাদেশের বিরুদ্ধে যে বিষোদ্গার করে আসছেন, তা নিশ্চয় জাতি জানে।” আওয়ামী লীগকে ‘লাথি মেরে’ ক্ষমতা থেকে হটাতে কামালের  হুমকির প্রতিক্রিয়ায় তিনি বলেন, “পরশু দিনের কথায় আমার ধারণা নিশ্চিত হয়েছে, আজকে পরিষ্কার হয়ে যাচ্ছে, কী ছিল সে সময়কার ভূমিকা। “যে ভাষা তিনি ব্যবহার করেছেন, যে কতগুলো শব্দ ব্যবহার করেছেন সেটা আমরা আশা করি নাই। যেহেতু তার জবাব দেবার এই সংসদে এসে সুযোগ নাই, তাই নিন্দা করা ছাড়া আর বেশি কথা বাড়ালাম না।” মুক্তিযুদ্ধবিষয়কমন্ত্রী এ বছর নোবেল পুরস্কারের মত বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের নামে একটি আন্তর্জাতিক পুরস্কার প্রচলন করার দাবি জানান। সেই সঙ্গে  ইউনেস্কোতেও বঙ্গবন্ধুর নামে পুরস্কার চালু করতে উদ্যোগী ভূমিকা নিতে পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়কে পরামর্শ দেন।

স্বাধীনতাবিরোধী ভূমিকার জন্য জামায়াতে ইসলামীকে নিষিদ্ধ করতে স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়কে উদ্যোগ নেওয়ার আহ্বান জানান তিনি। মোজাম্মেল সংসদের নকশা বহির্ভূত কবর বা স্থাপনা অপসারণ করার জন্য স্পিকারের দৃষ্টি আকর্ষণ করেন। তিনি বলেন, বলেন, “লুই কানের নকশায় বলা আছে, সংসদ এলাকায় কী থাকবে, কী থাকবে না। এই এলাকায় কয়েকজনের কবর আছে স্বাধীনতার পক্ষে ছিলেন না। একজন সেক্টর কমান্ডার ছিলেন পরবর্তীতে রাষ্ট্র ক্ষমতা দখল করে সংবিধান কাটা ছিঁড়া করেছিলেন, তারও একটি কথিত কবর আছে। হত্যাকারীরা তার লাশ পুড়িয়ে দিয়েছিল। লাশের সন্ধান পাওয়া যায়নি। কার লাশ এখানে দাফন করা হয়েছে জানা নেই।”

 

করোনাভাইরাস

মা-মেয়ের যে মুহূর্ত দেখে কাঁদছে বিশ্ব

ঢাকা অফিস ॥ এত কাছে থেকেও ছুঁয়ে দেখতে পারছে না। মায়ের জন্য আনা খাবার যে হাতে তুলে দেবে সেই সুযোগও নেই। শুধু মাত্র কয়েক হাত দূর থেকে হাসপাতালে মাকে দেখে আসা ছাড়া, আর কোনও উপায় নেই মেয়ের। আলিঙ্গন তো দূরের কথা। চীনে মা-মেয়ের উড়ন্ত আলিঙ্গন ও কান্নার একটি আবেগঘন দৃশ্যের ভিডিও ভাইরাল হয়েছে। যা দেখে এখন কাঁদছে গোটা বিশ্ব। প্রাণঘাতী করোনা ভাইরাস ছড়ানোর পর থেকে চীনের একাধিক শহরের নিয়মিত কার্যক্রম শিথিল হয়ে পড়েছে। বিধি-নিষেধ শুধু সেখানকার বাসিন্দাদেরই করা হয়নি। হাসপাতালে যারা কর্মরত রয়েছেন তাদের বাড়ি যাওয়া এমনকি পরিবারের সদস্যদের সঙ্গে দেখা করার ওপর নিষেধাজ্ঞা আরোপ করা হয়েছে। এমন অবস্থায় চীনের ঝোকৌয়ের এক হাসপাতালে লি হাইয়ান নামে এক নার্সের সঙ্গে দেখা করতে এসেছেন তার ছোট্ট মেয়ে। মেয়েকে কাছে পেয়েও বুকে টেনে নিতে পারেননি মা। মেয়েও মাকে এসে জড়িয়ে ধরতে পারেনি। ওই মুহূর্তের ভিডিও ক্যামেরা বন্দি করেছে দেশটির রাষ্ট্রীয় সংবাদমাধ্যম শিনহুয়া। ভিডিওতে দেখা যাচ্ছে, বাচ্চাটি তার মাকে কাঁদতে কাঁদতে প্রশ্ন করছে কবে আবার সব আগের মতো হবে মা? সে বলছে, ‘মা আমি তোমাকে অনেক মিস করছি।’ উত্তরে মা বলছেন, ‘আমি দৈত্যর (করোনা ভাইরাস) সঙ্গে লড়াই করছি। তাদের মেরেই আবার ফিরে আসবো। তখন বাড়ি ফিরে যাবো।’ একথা বলার পরই অঝোরে কাঁদতে থাকেন মা-মেয়ে। এরপর দূর থেকে আলিঙ্গনের ভঙ্গিমায় হাত বাড়ান মা। মেয়েও দেখে তাই করে। এরপর একটি বাটিতে খাবার রেখে চলে যায় মেয়ে। আর চোখের পানি মুছতে মুছতে খাবারের বাটি হাতে তুলে হাসপাতালের ভিতরে ঢুকে যান মা।

দৌলতপুর সীমান্তে বিজিবি-বিএসএফ’র পতাকা বৈঠক

৪ দিন পর নিহত বাংলাদেশী কৃষক লাশ ফেরত দিয়েছে বিএসএফ

লতপুর প্রতিনিধি ॥ কুষ্টিয়ার দৌলতপুর সীমান্তে বিএসএফ-এর গুলিতে নিহত বাংলাদেশী কৃষক ছলেমান (৪৭) এর লাশ ৪ দিন পর ফেরত দিয়েছে ভারতীয় সীমান্তরক্ষী বাহিনী বিএসএফ। গতকাল সোমবার বিকেল ৫টায় পতাকা বৈঠকের মাধ্যমে তার লাশ ফেরত দেওয়া হয়। দৌলতপুর উপজেলার চিলমারী ইউনিয়নের ডিগ্রিরচর সীমান্তে ৮৪/২-এস সীমান্ত পিলার সংলগ্ন নোম্যান্সল্যান্ডে অনুষ্ঠিত লাশ হস্তান্তর পতাকা বৈঠকে বিজিবি’র পক্ষে নেতৃত্ব দেন ৪৭ বিজিবি ব্যাটালিয়ন অধিনস্থ চিলমারী বিজিবি কোম্পানীর অধিনায়ক সুবেদার কাওছার আলী এবং বিএসএফ’র পক্ষে নেতৃত্ব দেন ভারতের ১৪১ বিএসএফ কমান্ডেন্ট অধিনস্থ চরভদ্রা বিএসএফ ক্যাম্পের অধিনায়ক এসি বলরাম সিং। এসময় দৌলতপুর থানার ওসি এস এম আরিফুর রহমান ও ভারতের মুর্শিদাবাদ জেলার জলঙ্গী থানার এএসআই আমজাদ আলী উপস্থিত ছিলেন। আনুষ্ঠানিকতা শেষে ছলেমানের লাশ দৌলতপুর থানার ওসি এস এম আরিফুর রহমানের নিকট হস্তান্তর করা হয়। উল্লেখ্য গত ৪ ফেব্র“য়ারী সকাল সোয়া ১০টার দিকে উপজেলার রামকৃষ্ণপুর ইউনিয়নের ছলিমেরচর সীমান্ত এলাকার কৃষক গাজী, রুবেল, ছলেমান, আরিফুল ও সাহাবুল ১৫৭/২-এস সীমান্ত পিলার সংলগ্ন বাংলাদেশী ভূখন্ডে নিজ জমিতে রায়-শরিষা কর্তন করছিল। এসময় ভারতের মুর্শিদাবাদ জেলার জলঙ্গী থানার ১৪১ বিএসএফ কমান্ডেন্ট অধিনস্থ মুরাদপুর ক্যাম্পের টহলরত বিএসএফ বিনা উস্কানিতে তাদের লক্ষ্য করে কয়েক রাউন্ড গুলি ছোড়ে। এতে কৃষক ছলেমান গুলিবিদ্ধ হলে বিএসএফ তাকে ধরে যায়। পরে তাকে ভারতের মুর্শিদাবাদ জেলার বহরমপুর হাসপাতালে চিকিৎসা দেওয়া হয়। চিকিৎসাধীন অবস্থায় ৭  ফেব্র“য়ারী শুক্রবার বিকেলে ছলেমান মারা যান। রোববার ভারতের পশ্চিমবঙ্গের মুর্শিদাবাদ জেলার জলঙ্গী থানা পুলিশ নিহত ছলেমানের লাশের ময়নাতদন্ত সম্পন্ন করে ৪দিন পর গতকাল বিকেলে তার লাশ হস্তান্তর করে। নিহত ছলেমান দৌলতপুর উপজেলার রামকৃষ্ণপুর ইউনিয়নের ছলিমেরচর এলাকার শাহাদতের ছেলে।