কক্সবাজারে কথিত বন্দুকযুদ্ধে রোহিঙ্গা শরণার্থী নিহত

ঢাকা অফিস ॥ কক্সবাজারের টেকনাফে কথিত বন্দুকযুদ্ধে এক রোহিঙ্গা শরণার্থী নিহত হয়েছেন; যিনি মাদক পাচার করছিলেন বলে র‌্যাবের ভাষ্য। র‌্যাব ১৫-এর সদর ব্যাটালিয়নের অ্যাডজুট্যান্ট অপস অফিসার এএসপি মো. শাহ আলম জানান, শুক্রবার ভোরে টেকনাফের বাহারছড়া ইউনিয়নের মনতলিয়া পুরান পাড়ায় গোলাগুলির এ ঘটনা ঘটে। নিহত মো. আব্দুল নাছির (২৮) উখিয়ার বালুখালী রোহিঙ্গা শরণার্থী শিবিরের ৮ নম্বর ব্লকের ইস্ট বি-২৬ শেডের বাসিন্দা মোহাম্মদ জাকিরের ছেলে। নাছির একজন চিহ্নিত মাদক পাচারকারী বলে র‌্যাবের ভাষ্য। র‌্যাব কর্মকর্তা শাহ আলম বলেন, শুক্রবার ভোরে মেরিন ড্রাইভ সড়ক দিয়ে মাদক পাচারের খবর আসে। র‌্যাবের একটি দল নতলিয়া পুরান পাড়ায় তল্লাশি চৌকি স্থাপন করে। “একপর্যায়ে টেকনাফের দিক থেকে চার-পাঁচজন সন্দেহজনক লোক আসতে দেখে র‌্যাব তাদের থামার নির্দেশ দেয়। তারা না থেমে র‌্যাব সদস্যদের লক্ষ করে অতর্কিতে গুলি ছুড়তে থাকে। র‌্যাব সদস্যরাও আত্মরক্ষার্থে পাল্টা গুলি ছুড়লে তারা গুলি ছুড়তে ছুড়তে পালিয়ে যায়।” পরে ঘটনাস্থল থেকে একজনকে গুলিবিদ্ধ অবস্থায় উদ্ধার করে টেকনাফ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে গেলে চিকিৎসক মৃত ঘোষণা করেন।” র‌্যাব কর্মকর্তা বলেন, “নাছির সংঘবদ্ধ মাদক পাচারকারী চক্রের সদস্য। ঘটনাস্থলে তল্লাশি করে ৬৬ হাজার ৯১৫টি ইয়াবা, দুটি দেশি বন্দুক, পাঁচটি গুলি, দুটি গুলির খালি খোসা ও তিন হাজার টাকা পাওয়া গেছে।” এ ঘটনায় র‌্যাবের তিন সদস্য আহত হলে তাদের প্রাথমিক চিকিৎসা দেওয়া হয় বলে তিনি জানান। লাশ ময়নাতদন্তের জন্য কক্সবাজার সদর হাসপাতাল মর্গে পাঠানো হয়েছে।

আমলায় ভলিবল টুর্নামেন্ট অনুষ্ঠিত

আমলা অফিস ॥ বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জন্ম শতবার্ষিকী উদযাপন উপলক্ষে কুষ্টিয়ার মিরপুরের আমলায় দিনব্যাপি ভলিবল টুর্নামেন্ট অনুষ্ঠিত হয়েছে। গতকাল শুক্রবার আমলা-সদরপুর ক্রীড়া উন্নয়ন সমিতির আয়োজনে আমলাসদরপুর মাধ্যমিক বিদ্যালয় খেলা মাঠে এ টূর্নামেন্ট অনুষ্ঠিত হয়। সকালে এ টূর্নামেন্টের উদ্বোধন করেন মিরপুর উপজেলা পরিষদের মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান মর্জিনা খাতুন। বিকেলে খেলা শেষে পুরষ্কার বিতরনী অনুষ্ঠানে রফিকুল ইসলাম রফিকের সভাপতিত্বে প্রধান অতিথি হিসাবে বিজয়ীদের মাঝে পুরষ্কার বিতরণ করেন আমলা ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান আনোয়ারুল ইসলাম মালিথা। অনুষ্ঠানে আমলা-সদরপুর ক্রীড়া উন্নয়ন সমিতির যুগ্ম-সাধারন সম্পাদক সাইফুজ্জামান হীরা ও মনিরুল ইসলাম মনির যৌথ পরিচালনায় বিশেষ অতিথি ছিলেন বীর মুক্তিযোদ্ধা আশকর আলী, ফকরুল আলম, বাংলাদেশ সুইমিং ফেডারেশনের সাবেক যুগ্ম-সাধারন সম্পাদক আমিরুল ইসলাম, আমলা-সদরপুর ক্রীড়া উন্নয়ন সমিতির সাধারন সম্পাদক কামাল হোসেন, সদস্য আব্দুল কুদ্দুস রিংক, খোকন, আশরাফুল, সাদেক আলী, আব্দুর রাজ্জাক প্রমুখ। দিনব্যাপি এ খেলা পরিচালনা করেন আমলা-সদরপুর ক্রীড়া উন্নয়ন সমিতির সহ-সভাপতি মাহাবুব হাসান রাজন ও আসলাম হোসেন বকুল। খেলায় জেলার বিভিন্ন এলাকার ৮টি দল অংশগ্রহণ করে। এর মধ্যে মিরপুর উপজেলার পুরাতন আজমপুর দল চ্যাম্পিয়ন এবং দৌলতপুর উপজেলার খলিসাকুন্ডি দল রানার আপ হওয়ার গৌরব অর্জন করে।

২০ দেশে ছড়িয়ে পড়েছে করোনা ভাইরাস

ঢাকা অফিস ॥ ভারত ও ফিলিপিনস বৃহস্পতিবার করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত রোগীর খবর নিশ্চিত করেছে। ফলে করোনায় আক্রান্ত দেশের সংখ্যা ২০টিতে উন্নীত হয়েছে। গত কয়েকদিনে আক্রান্ত দেশগুলোতে করোনায় আক্রান্ত রোগীর সংখ্যাও বাড়ছে। চীন ছাড়া আক্রান্ত অন্যান্য দেশে নতুন করে ১২ জন রোগী আক্রান্তের খবর আন্তর্জাতিক সংবাদ মাধ্যমগুলো নিশ্চিত করেছে। চীনের প্রতিটি রাজ্যেই করোনা ভাইরাস ছড়িয়ে পড়েছে। আক্রান্তের সংখ্যা ৭ হাজার ৭শ ১১ তে দাঁড়িয়েছে। প্রাণ হারিয়েছেন অন্তত ১৭০ জন মানুষ। এশিয়া মহাদেশের অন্যান্য দেশ যেমন- থাইল্যান্ডে ১৪, জাপানে ১১, সিঙ্গাপুরে ১০, মালয়েশিয়ায় ৮, তাইওয়ানে ৮, সংযুক্ত আরব আমিরাতে ৪, ভিয়েতনামে ৪, শ্রীলঙ্কায় ১, ভারতে ১, কম্বোডিয়ায় ১, নেপালে ১, ফিলিপিন্সে ১ জন করোনা ভাইরাস আক্রান্ত রোগী সনাক্ত করা হয়েছে। এছাড়া ইউরোপ মহাদেশের মধ্যে ফ্রান্সে ৫, জার্মানিতে ৪, ফিনল্যান্ডে ১ জন রোগী সনাক্ত হয়েছেন। উত্তর আমেরিকার দেশ মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে ৫ জন এবং কানাডায় ৪ জন রোগী সনাক্তের খবর নিশ্চিত হওয়া গেছে। তাছাড়া অস্ট্রেলিয়ায় ৭ জনকে সনাক্ত করা হয়েছে। উলে¬খ্য, ডিসেম্বরের শেষ দিকে চীনের হুবেই প্রদেশের উহান শহর থেকে করোনা ভাইরাসটি ছড়িয়ে পড়ে। ভাইরাসে আক্রান্ত রোগীদের শরীরে প্রাথমিক লক্ষণ হিসেবে শ্বাসকষ্ট, জ্বর, সর্দি, কাশির মতো সমস্যা দেখা দেয়।

ব্যাপক উসব আমেজে কুষ্টিয়ায় সরস্বতী পূজার সমাপ্তি

নিজ সংবাদ ॥ ব্যাপক উৎসব আমেজে মধ্যদিয়ে কুষ্টিয়ায় সরস্বতী পূজার সমাপ্তি হয়েছে। গতকাল শুক্রবার প্রতিমা বিসর্জনের মধ্যদিয়ে তিন দিনব্যাপী এ পূজা অনুষ্ঠানের সমাপ্তি ঘটে। কুষ্টিয়া শহরের প্রতিটি মন্দিরে, বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে ও বাড়ীতে এ বিদ্যার দেবী সরস্বতীর পূজা করা হয়। গতকাল কুষ্টিয়া শহরের আমলাপাড়াস্থ আমলাপাড়া সার্বজনীন পূজা মন্দিরে গিয়ে দেখা গেছে, পূজারীরা সাইন্ড সিস্টেমের তালে তালে উৎসব আমেজে মেতে ওঠে। এ মন্দিরে আমলাপাড়া সার্বজনীন যুব সংঘের পরিচালনায় সরস্বতী পূজার আয়োজন করা হয়। এ মন্দিরে সরস্বতী পূজা উদযাপন কমিটির সভাপতি অলোক কুমার ঘোষ সাজু এবং সাধারণ সম্পাদক বিপুল অধিকারী।

মিরপুরে নকল সার ও কীটনাশক কারখানায় অভিযান

কাঞ্চন কুমার ॥ কুষ্টিয়ার মিরপুরে “উমাইয়া ট্রেডার্স” নামের নকল সার ও কীটনাশক তৈরীর কারখানায় অভিযান চালিয়েছে ভ্রাম্যমান আদালত। এসময় বিপুল পরিমান নকল সার, কীটনাশক, মোড়ক ও সার তৈরীর মেশিন জব্দ করা হয়। গতকাল শুক্রবার বিকেলে কুষ্টিয়ার মিরপুর উপজেলার কুষ্টিয়া-মেহেরপুর মহাসড়কের পশ্চিম চুনিয়াপাড়ার উমাইয়া ট্রেডার্সে অভিযান চালায় ভ্রাম্যমান আদালত। ভ্রাম্যমান আদালতের নেতৃত্বে ছিলেন মিরপুর উপজেলা সহকারী কমিশনার (ভূমি) রকিবুল হাসান ও উপজেলা সহকারী কৃষি সম্প্রসারণ কর্মকর্তা অশোক কুমার কর্মকার। উপজেলা সহকারী কমিশনার (ভূমি) রকিবুল হাসান জানান, “গোপন সংবাদের ভিত্তিতে আমরা উক্ত এলাকার উমাইয়া ট্রেডার্স নামের একটি কারখানায় অভিযান চালায়। দেখা যায়, চায়না কোম্পানী “হনবর ইন্ডাষ্ট্রিয়াল কোম্পানী লিমিটেড” এর মোড়কে গোল্ডাফুরান ৫জি কীটনাশক, সুপার ম্যাগ, জিংক, বরুন প্লাস নকল সার বাজারজাত করণের জন্য তৈরি করছিলো। এসময় সেখান থেকে ৫টন নকল সার ও কিটনাশক, ৩শ বস্তা বালি ও নকল সার তৈরীর সরঞ্জাম এবং মেশিন উদ্ধার করা হয়। অভিযানকালে নকল কারখানার মালিক উমাইয়া ট্রেডার্সের স্বাত্তাধিকারী মিলন আহমেদকে (৩২) আটক করা হয়। মিলন আহম্মেদ বারুইপাড়া ইউনিয়নের কেউপুর গ্রামের কামাল উদ্দিনের ছেলে। এসময় কারখানাটির অপর মালিক ফুলবাড়ীয়া ইউনিয়নের কৃষ্ণপুর গ্রামের হায়দার আলী মন্ডলের ছেলে খোকন পালিয়ে যায়।” তিনি আরো জানান, “ভোক্তা অধিকার সংরক্ষণ আইন ২০০৯ এর ৪৩ ধারায় মিলন আহম্মেদকে এক লাখ টাকা জরিমানা করা হয়। সেই সাথে উমাইয়া ট্রেডার্স নামের ঐ নকল সার তৈরীর কারখানা সিলগালা করে দেওয়া হয়। এবং উদ্ধারকৃত মোড়ক পুড়িয়ে দেওয়া হয়।” উপজেলা সহকারী কৃষি সম্প্রসারণ কর্মকর্তা অশোক কুমার কর্ম্মকার জানান, “বালি, রং ও নাম মাত্র বিষাক্ত পদার্থ দিয়ে এ সকল কীটনাশক ও সার তৈরি করা হচ্ছিলো। এ সকল কীটনাশক ও সার ক্রয় করে কৃষকরা প্রতিনিয়ত প্রতারিত এবং আর্থিক ক্ষতির সম্মুখিন হচ্ছেন।”

জয়কে ‘রাজ জ্যোতিষী’ হিসেবে নিয়োগ দিতে বললেন ফখরুল

ঢাকা অফিস ॥ প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার তথ্যপ্রযুক্তি বিষয়ক উপদেষ্টা সজীব ওয়াজেদ জয়ের জরিপ সিটি কর্পোরেশনের গোটা নির্বাচনকে প্রভাবিত করছে বলে অভিযোগ করেছেন বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর। তিনি বলেন, বৃহস্পতিবার প্রধানমন্ত্রীর আইটি উপদেষ্টা বলেছেন, তাদের দুই মেয়র প্রার্থী জয়লাভ করবে। গত জাতীয় সংসদ নির্বাচনের আগেও একইভাবে তিনি নির্বাচন নিয়ে একটা ভবিষ্যত বাণী করেছিলেন। সাধারণত যারা জ্যোতীষ তারা এই ধরনের ভবিষ্যত বাণী করে থাকেন। আমরা মনে করি, সজীব ওয়াজেদ জয় সাহেব ভোটের আগে এই ধরনের যেসব ভবিষ্যদ্বাণী করছেন সেগুলো গোটা নির্বাচনকে প্রভাবিত করছে। শুক্রবার বিকালে ঢাকা দক্ষিনের ধানের শীষের মেয়র প্রার্থী ইশরাক হোসেনের গোপীবাগের বাসায় সাংবাদিকদের এসব কথা বলেন। বিএনপি মহাসচিব বলেন, যখন সরকারি দলের বড় নেতা বা কর্মকর্তা এই ধরনের স্থানীয় সরকার নির্বাচনের ব্যাপারে কথা বলেন তখন ডেফিনেটলি গোটা নির্বাচনের ব্যবস্থার ওপরই প্রভাব পড়ে। নির্বাচন কমিশন যারা ভোটগ্রহণ করবেন তাদের সবার ওপরেই। সজীব ওয়াজেদ জয়ের জরিপের সমালোচনা করে মির্জা ফখরুল বলেন, এখন আমার মনে হয় প্রধানমন্ত্রীর চিন্তা করা উচিত যে, সজীব ওয়াজেদ জয়কে তার উপদেষ্টা হিসেবে রাখবেন নাকি ‘রাজ জ্যোতিষী’ হিসেবে তাকে নতুন নিয়োগ দেবেন। ঢাকার দুই সিটি কর্পোরেশন নির্বাচনে আওয়ামী লীগের মেয়র প্রার্থীদের বিপুল জয় হবে বলে নিজের করা জরিপের ওপর ভিত্তি করে নিজের ফেসবুকের একাউন্টে স্ট্যাটাস দিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী তথ্যপ্রযুক্তি বিষয়ক উপদেষ্টা সজীব ওয়াজেদ জয়। নিজের ফেসবুকের ভেরিফায়েড পেজে বৃহস্পতিবার এই জরিপের ফল তুলে ধরেন জয়। এদিকে বিকালে গুলশানে চেয়ারপারসনের কার্যালয়ে ঢাকা উত্তরের মেয়র প্রার্থী তাবিথ আউয়াল বিএনপি মহাসচিবের সঙ্গে দেখা করে তার নির্বাচনী প্রস্তুতির সর্বশেষ পরিস্থিতি তুলে ধরেন। এরপর বিকাল ৪টায় মহাসচিব গোপীবাগে প্রয়াত ঢাকার মেয়র সাদেক হোসেন খোকার বাসায় যান। সেখানে দক্ষিণের মেয়র প্রার্থী ইশরাকের কাছ থেকে তার নির্বাচনী প্রস্তুতির কথা জানেন। পরে মহাসচিব প্রয়াত সাদেক হোসেন খোকার স্ত্রী ইসমত আরা খোকার সঙ্গেও দেখা করেন। মির্জা ফখরুল সাংবাদিকদের আরও বলেন, সরকার চেষ্টা করছে পুরো নির্বাচনটাকে নিয়ন্ত্রণে নিয়ে নেয়ার জন্য। ইতিমধ্যে সরকারি দলের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের বলেছেন যে, প্রত্যেকটি কেন্দ্র তারা পাহারা দেবেন এবং তারা নিয়ন্ত্রণ করবেন। ক্ষমতাসীন দলের নেতৃবর্গ তাদের কর্মীদের যেরকম নিদের্শনা দিচ্ছেন যে, যে কোনো মূল্যে তাদের কেন্দ্র নিয়ন্ত্রণ করতে হবে। তারপরেও আমরা বিশ্বাস করি, ঢাকা শহরের মানুষ তৈরি হয়ে আছেন। যদি তারা ভোট দেয়ার ন্যূনতম সুযোগ পান তাহলে অবশ্যই দক্ষিণে ইশরাক ও উত্তরে তাবিথকে জয়যুক্ত করবেন ধানের শীষে। ভোট কেন্দ্র দখলের চেষ্টা হলে আপনারা কী করবেন? এমন প্রশ্নের জবাবে ফখরুল বলেন, আমরা বলেছি, আমাদের জনগণই যা কিছু করবার করবেন। জনগণই প্রতিরোধ গড়ে তুলবেন। জনগণই তাদের ভোটের অধিকার নিশ্চিত করবেন। এ সময় আরও উপস্থিত ছিলেন- গণফোরামের অ্যাডভোকেট সুব্রত চৌধুরী, বিএনপির আবদুস সালাম, ফজলুল হক মিলন, সৈয়দ এমরান সালেহ প্রিন্স, আবদুস সালাম আজাদ, কাজী আবুল বাশার, রফিক শিকদার প্রমুখ।

নাগরিকদের চীনে যেতে নিষেধ করলো যুক্তরাষ্ট্র

ঢাকা অফিস ॥ নাগরিকদের চীনে যেতে নিষেধ করেছে যুক্তরাষ্ট্র। শুক্রবার যুক্তরাষ্ট্রের পক্ষ থেকে করোনা ভাইরাস প্রতিরোধে নাগরিকদের প্রতি এই সতর্ক বার্তা দেয়া হয়। খবর রয়টার্সের। রয়টার্সের প্রতিবেদনে বলা হয়, ইরাক এবং আফগানিস্তান ভ্রমণে যেমন সতর্কতা জারি করা হয় চীনে ভ্রমণ নিয়েও ঠিক একই সতর্কতা জারি করা হয়েছে। মার্কিন পররাষ্ট্র দফতের ওয়েবসাইটে বলা হয়, করোনা ভাইরাসের জন্য চীনে যাবেন না। করোনা ভাইরাসে চীনে মৃতের সংখ্যা বেড়ে ২১৩ জনে দাঁড়িয়েছে।এই ভাইরাসে এখন পর্যন্ত আক্রান্ত হয়েছেন ৯,৬৯২ জন। চীনের ৩১ টি প্রদেশের সবগুলোতেই করোনা ভাইরাস ছড়িয়ে পড়েছে।এ পর্যন্ত বিশ্বের প্রায় ১৮ টি দেশে ছড়িয়েছে চীনের এই করোনা ভাইরাস। গত ডিসেম্বরে চীনের উহান শহরে করোনা ভাইরাসের আবির্ভাব ঘটে। প্রতিনিয়ত এই ভাইরাসে বাড়ছে আক্রান্তের সংখ্যা। করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত রোগীদের শরীরে প্রাথমিক লক্ষণ হিসেবে শ্বাসকষ্ট, জ্বর, সর্দি, কাশির মত সমস্যা দেখা দেয়।

ঢাকায় আওয়ামী লীগ প্রার্থীদের বিজয় নিশ্চিত – জয়

ঢাকা অফিস ॥ ঢাকা সিটি নির্বাচনে আওয়ামী লীগ প্রার্থীদের বিজয় নিশ্চিত বলে জানিয়েছেন বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের দৌহিত্র ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার ছেলে সজীব ওয়াজেদ জয়। বৃহস্পতিবার রাতে এক জরিপের বরাত দিয়ে নিজের ভেরিফাইড ফেসবুক পেজে এ কথা বলেন তিনি। সজীব ওয়াজেদ জয় লিখেন, ‘ঢাকা উত্তর ও দক্ষিণের মেয়র নির্বাচন নিয়ে আমরা সাম্প্রতিক সময়ে একটি জনমত জরিপ করিয়ে ছিলাম। উত্তরের ভোটারদের মধ্যে জরিপে অংশ নেন ১৩০১ জন ও দক্ষিণে অংশ নেন ১২৪৫ ভোটার। ভোটার লিস্ট থেকে রেন্ডম স্যাম্পলিং এর মাধ্যমে তাদের বাছাই করা হয়। জরিপটি করা হয় সামনাসামনি, অর্থাৎ অনলাইনের মাধ্যমে নয়। মক ব্যালটের মাধ্যমে। এই জরিপটি করার কারণে আমরা বা জরিপকারী কারোরই জানার সুযোগ থাকে না কে কাকে ভোট দিলো। জরিপ করার সবচেয়ে নির্ভরযোগ্য ও নির্ভুল পদ্ধতি এটি। নির্ভয়ে, নির্দ্বিধায় মানুষ জরিপে অংশগ্রহণ করতে পারে। তারপরেও যারা কোনো অপশনই বেছে নেয় না তাদের ভোট দেয়ার সম্ভাবনাই কম কারণ সাধারণত কোনো নির্বাচনেই ১০০% ভোট পরে না। এই জরিপের ফলাফল ভুল হওয়ার সম্ভাবনা +-৩%।’ ‘জরিপটি করা হয় যখন দলগুলো তাদের প্রার্থীদের নাম ঘোষণা করে। তাই জরিপের সাথে আসল ফলাফলের কিছুটা পার্থক্য হতেই পারে। তারপরেও সেই পার্থক্য ৫-১০% এর বেশি হওয়ার সম্ভাবনা একেবারেই কম। কারণ মাত্র এক মাসের ব্যবধানে ১০% এর বেশি ভোট কোনো দলের পক্ষেই পরিবর্তন করে নিজেদের পক্ষে নিয়ে আসা কঠিন। তাই এই নির্বাচনে আওয়ামী লীগ প্রার্থীদের বিজয় শুধু নিশ্চিতই নয়, ব্যাপক ব্যবধানে জয়ও নিশ্চিত।’

 

জেলা প্রাণী সম্পদ অফিসের অস্বীকার

মারা গেছে সহস্রাধিক মুরগি

চুয়াডাঙ্গা জেলার বেশ কয়েকটি পোল্ট্রি খামারে ছড়িয়ে পড়েছে বার্ড ফ্লু সাদৃশ্য  রোগ

ফাইজার চৌধুরী ॥ চুয়াডাঙ্গার বেশ কয়েকটি পোল্ট্রি খামারে অজ্ঞাত রোগের প্রকোপ দেখা দিয়েছে। যা অনেকটা এভিয়েন ইনফ্লুয়েঞ্জা (এআই) বা বার্ড ফ্লুর মতো হলেও গোপন করছেন খামারিরা। চলতি বছরের শুরুতেই খামারগুলোতে বার্ড ফ্লু ধরণের এ রোগ দেখা গিয়েছে বলে সংশ্লিষ্ট সূত্র জানিয়েছে। আক্রান্ত মুরগি দ্রুত বাজারে বিক্রি করে দেয়া হচ্ছে। এতে জনস্বাস্থ্য হুমকির মুখে পড়ার আশঙ্কা করা হচ্ছে। তবে চুয়াডাঙ্গা জেলা প্রাণী সম্পদ কর্মকর্তা গোলাম মোস্তফা জেলার কোথাও বার্ড ফ্লু বা অন্য কোন রোগের খবর মেলেনি বলে দাবি করেছেন। চুয়াডাঙ্গা সদর উপজেলায় প্রথম বার্ড ফ্লু সাদৃশ্যে রোগের সন্ধান মেলে পৌর এলাকার শ্মশানপাড়ায় অবস্থিত জোবেদা পোল্ট্রি ফার্মে। চলতি জানুয়ারি মাসের দ্বিতীয় সপ্তাহে জোবেদা পোল্ট্রির সহস্রাধিক মুরগি মারা গেলে তা মাটিতে পুঁতে ফেলে কর্তৃপক্ষ। কিছু মুরগি এলাকাবাসির মাঝে বিনামূল্যে বিতরণ করা হয়। বর্তমানে ওই খামারে মুরগির সংখ্যা তিনভাগের একভাগে নেমে এসেছে। তবে, জোবেদা পোল্ট্রি বিষয়টি জেলা প্রাণী সম্পদ অফিসকে অবহিত করেনি বলে দাবি করেছেন ডিএলও গোলাম মোস্তফা। তিনি জানান, বৃহস্পতিবার তাঁরা খামারে মুরগির কলেরা ভ্যাকসিন দেয়ার জন্য আবেদন করেছে। একই অবস্থা দামুড়হুদা উপজেলার বেশ কয়েকটি খামারে। গতকালও শতাধিক মুরগি মরেছে সেখানকার একটি খামারে। দু’একদিনের মধ্যে লেয়ার, ব্রিডার, ব্রয়লার মুরগির শেডের সব মুরগি বিক্রি করে দেয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছেন ওই এলাকার প্রতিষ্ঠিত খামারিরা। নাম পরিচয় প্রকাশে অনিচ্ছুক বেশ কয়েকজন  পোল্ট্রি খামারির সাথে কথা বলে জানা গেছে, আগে কোনো খামারে বার্ড ফ্লু দেখা দিলে তা নিধন করে মাটিতে পুঁতে ফেলা হতো এবং সরকারের তরফ থেকে মুরগি প্রতি ১০০ থেকে ২০০ টাকা পর্যন্ত ক্ষতিপূরণ দেওয়া হতো। বিগত ৭/৮ বছর ধরে এ ক্ষতিপূরণ দেওয়া বন্ধ রয়েছে। মূলত এই ক্ষতিপূরণ দেওয়া বন্ধ করার কারণেই খামারিরা গোপন করছেন বার্ড ফ্লুতে খামারের মুরগির আক্রান্ত হওয়ার কথা। আর প্রাণী সম্পদ অফিসে ’বার্ড ফ্লু’ অনেকটা নিষিদ্ধ শব্দের মতো। বিগত সময়ে চুয়াডাঙ্গায় বিচ্ছিন্নভাবে দু’একটি খামারে বার্ড ফ্লুতে মুরগির মড়ক দেখা দিলেও সেগুলোকে বার্ড ফ্লু বলতে নারাজ তাঁরা। অনেক ক্ষেত্রে দেখা গেছে বেসরকারি পশু চিকিৎসকরা যেখানে বার্ড ফ্লু বলে চিহ্নিত করেছেন, মেরে পুঁতেও ফেলা হয়েছে হাজার হাজার মুরগি আর সরকারি অফিসের পশু ডাক্তার সে রিপোর্ট প্রত্যাখ্যান করে অন্য কোন রোগ দাবি করেছেন। খামারিরা বলছেন, নানা সমস্যা জর্জরিত এ খাতে ধারাবাহিক লোকসানে প্রান্তিক পর্যায়ের অনেক পোল্ট্রি খামারি নিঃস্ব হয়ে গেছেন। এ বছর চুয়াডাঙ্গা জেলায়  পোল্ট্রিতে যে ধরণের রোগের প্রার্দূভাব দেখা দিয়েছে তাতে অনেকেই পথে বসতে চলেছেন বলে ধারণা তাঁদের। চুয়াডাঙ্গা বড়বাজার মুরগি বিক্রির শেডে গিয়ে দেখা গিয়েছে লেয়ার, ব্রিডার মুরগি বিক্রির প্রাধান্য। মুরগি বিক্রেতারা জানালেন, দিন পনের যাবত তাঁরা বেশ কম দামে পাইকারি মুরগি কিনছেন।  লেয়ার, সোনালি মুরগি ১শ ৫০টাকা, ব্রিডার ( প্যারেন্টস) ১শ ৬০ টাকা দরে কিনে আনছেন তাঁরা। তবে, লেয়ার মুরগিতে অজ্ঞাত রোগের কথা জেনে অনেকেই তা খুচরো বিক্রি বন্ধ করে দিয়েছেন। মুরগির মড়ক দেখা দেয়ায় তারাও ব্যবসার ভবিষ্যত নিয়ে চিন্তিত।  বিশেষজ্ঞ এক পশু চিকিৎসকের সাথে কথা বলে জানা গেছে , পোল্ট্রি খামার থেকে এইচ৫এন১, এইচ১এন১, এইচ৩এন১ এবং এইচ৯এন২-এই চার ধরনের ভাইরাস বাতাসের মাধ্যমে ছড়িয়ে পড়ে। এর বিরূপ প্রাদুর্ভাব দেখা দেওয়ার জোরালো আশঙ্কা রয়েছে। তবে এইচ৫এন১ ভাইরাস মানুষের শরীরের জন্য সবচেয়ে ক্ষতিকর। বার্ড ফ্লুকে গোপন করা মোটেই সমীচীন নয়। অনেক খামারি বার্ড ফ্লু আক্রান্ত হওয়ার বিষয়টি গোপন রেখে আক্রান্ত মুরগি দ্রুত বাজারে বিক্রি করে দিচ্ছেন। এতে জনস্বাস্থ্য হুমকির মুখে পড়তে পারে। এ বিষয়ে সংশ্লিষ্ট সরকারি বিভাগগুলোর দ্রুত পদক্ষেপ গ্রহণ করা দরকার। চুয়াডাঙ্গা জেলার পোল্ট্রি খামারে ছড়িয়ে পড়া রোগ যদি বার্ড ফ্লু না হয় তাহলে অন্য কী কারণ সেটিও দ্রুত বের করার তাগিদ দিয়েছেন তিনি।  প্রাণিসম্পদ অধিদফতরের তথ্য থেকে জানা যায়, পোল্ট্রি খামারিদের ক্ষতিপূরণ দেওয়ার জন্য সরকার এভিয়েন ইনফ্লুয়েঞ্জা প্রিপেয়ার্ডনেস অ্যান্ড রেসপন্স প্রজেক্ট (এআইপিআরপি) নামে একটি প্রজেক্ট চালু করে। বার্ড ফ্লু আক্রান্ত এলাকায় কার্যক্রম পরিচালনার জন্য এ প্রজেক্টের অধীন ১১ শতাধিক কর্মী কাজ করতেন। আর এই প্রজেক্ট থেকেই ক্ষতিগ্রস্ত খামারিদের ক্ষতিপূরণের অর্থ দেওয়া হতো। এ প্রকল্প থেকে ২০০৭ সাল থেকে ২০১২ সাল পর্যন্ত খামারিদের ক্ষতিপূরণ দেওয়া হয় ২৫ কোটি টাকা। কিন্তু দেশে বার্ড ফ্লু আর নেই উল্লেখ করে ২০১২ সালের ৩১ ডিসেম্বর এ প্রকল্প বন্ধ করে দেওয়া হয়। অথচ ২০১৩ সালের জানুয়ারি থেকে চলতি বছরের এখন পর্যন্ত দেশের বিভিন্ন এলাকায় বার্ড ফ্লুর সন্ধান পাওয়া গেছে বিভিন্ন সময়। ২০১৩ সালের ১২ ফেব্র“য়ারি চুয়াডাঙ্গা শহরের ইসলামপাড়ার মেসার্স মুন্সি পোল্ট্রি খামারে বার্ড ফ্লু ধরা পড়ে। বিষয়টি জানাজানির পর প্রশাসনের উদ্যোগে অভিযান চালানো হয়। এ সময় খামারটির প্রায় দুই হাজার মুরগি মেরে মাটিচাপা দেওয়া হয়। সেবারও জেলা প্রাণী সম্পদ অফিসের পক্ষ থেকে বার্ড ফ্লু ঘোষনা দেয়া হয়নি। চুয়াডাঙ্গা জেলার অনেক মুরগির খামারে বার্ড ফ্লু সাদৃশ্য অর্থাৎ মুরগি ঝিঁমানো, মাথা ফুলে যাওয়া, গায়ের তাপমাত্রা অস্বাভাবিক বেড়ে যাওয়া, মাথার উপরের ফুল কালচে রঙ ধারণসহ যে ধরণের মড়ক দেখা দিয়েছে এর কারণ অনুসন্ধানে উচ্চতর পরীক্ষা নীরিক্ষার জন্য স্থানীয় প্রাণী সম্পদ অফিসের কাছে জোর দাবি জানিয়েছেন পোল্ট্রি খামারিরা। একই সাথে ক্ষতিগ্রস্ত খামারিদের ক্ষতিপূরণের দাবি উঠেছে।

দৌলতপুর সীমান্তে গাঁজা ও ফেনসিডিলসহ আটক-৩

দৌলতপুর প্রতিনিধি ॥ কুষ্টিয়ার দৌলতপুর সীমান্তে গাঁজা, ভারতীয় রূপি ও ফেনসিডিলসহ ৩ জন মাদক ব্যবসায়ী আটক হয়েছে। বৃহস্পতিবার সাড়ে ১১টার দিকে উপজেলার রামকৃষ্ণপুর ইউনিয়নের মুন্সিগঞ্জ সীমান্ত এলাকা থেকে রবিউল ইসলাম (২৫) ও আব্দুল মতিন (২৮) নামে দুই মাদক ব্যবসায়কে ২ কেজি গাঁজা ও ১১০ ভারতীয় রূপিসহ আটক করে আশ্রয়ন বিওপি’র টহল দল। আটক মাদক ব্যবসায়ীরা নাটোর জেলার লক্ষীপুর এলাকার মৃত নওকেল এবং রাজশাহীর কাটাখালীর সাজিপাড়া গ্রামের জিব্রাইলের ছেলে। আটক মাদক ব্যবসায়ীরা ভারত থেকে মাদক পাচার করছিল বলে বিজিবি সূত্র জানিয়েছে। অপরদিকে গতকাল শুক্রবার দুপুর ১টার দিকে মহিষকুন্ডি বিওপি’র টহল মহিষকুন্ডি পূর্বপাড়া এলাকায় অভিযান চালিয়ে টিপু সুলতান (৩৫) নামে অপর এক মাদক ব্যবসায়ীকে ৫ বোতল ফেনসিডিল ও একটি মোটরসাইকেলসহ আটক করেছে। সে টলটলিপাড়া এলাকার জিন্নাত আলীর ছেলে।

হাটশ হরিপুর ইউনিয়ন জাসদের ত্রি-বার্ষিক সম্মেলন অনুষ্ঠিত

জাতীয় সমাজতান্ত্রিক দল জাসদ হাটশ হরিপুর ইউনিয়ন শাখার ত্রি-বার্ষিক সম্মেলন অনুষ্ঠিত হয়েছে। শুক্রবার বিকেল সাড়ে ৪টায় কুষ্টিয়া সদর উপজেলার হাটশ হরিপুুর দি ওল্ড কুষ্টিয়া হাইস্কুল চত্বরে জাসদ নেতা নজরুল ইসলামের সভাপতিত্বে সম্মেলনের উদ্বোধন করেন জেলা জাসদ সভাপতি  গোলাম মহসিন। প্রধান অতিথি ছিলেন জাসদ কেন্দ্রীয় সাংগঠনিক সম্পাদক আব্দুল আলীম স্বপন। সম্মেলনে আমন্ত্রিত অতিথিদের মধ্যে বক্তব্য রাখেন, কুষ্টিয়া সদর উপজেলা জাসদের সভাপতি বীর মুক্তিযোদ্ধা আমিরুল ইসলাম মকলু, জেলা জাসদের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক জিল্লুর রহমান, সাংগঠনিক অসিত কুমার সিংহ রায়, জেলা যুবজোটের সাধারণ সম্পাদক মাহাবুব হাসান প্রমুখ। সেখানে আমন্ত্রিত অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন সাংবাদিক ও মানবাধিকার কর্মী হাসান আলী। শেষে আবু তৈয়বকে সভাপতি ও আব্দুল মাজেদকে সাধারণ সম্পাদক করে ইউনিয়ন জাসদের  ৪১ সদস্য বিশিষ্ট  নতুন কমিটির পরিচয় করিয়ে দেন জেলা জাসদের সভাপতি গোলাম মহসিন। আগামী তিন বছরের নেতৃত্বে আগত সকল নেতৃবৃন্দ সেখানে উপস্থিত থেকে পরিচিত হন এবং সম্মেলন স্থলের সকলে করতালির মাধ্যমে অভিনন্দন জানয়। সংবাদ বিজ্ঞপ্তি

বিচারের বাণী নিভৃতে কাঁদে

সাহাজুল সাজু ॥ ছেলেকে বিদেশ পাঠিয়ে তার পাঠানো রোজগারের অর্থ দিয়ে একটু সুখে-শান্তিতে জীবন-যাপন করবো এমনই স্বপ্ন ছিল কৃষক জামাত আলীর। কিন্তু সে স্বপ্ন ভেঙ্গে চুরমার হয়েছে। এখন শুধু ছেলের ছবি বুকে লাগিয়ে ছেলে হত্যাকারীদের বিচারের আশায় নিরবে কাঁদ হচ্ছে হতভাগা পিতার জামাত আলীকে। কিন্তু তার এ কাঁন্না দেখবে কে ? ছেলে হারানোর বেদনায় একটু শান্তনার আশায় বুক ফুঁড়তে কাঁদতে-কাঁদতে হয়ে পড়েছে পাথর প্রায়ই। জানা যায়, মেহেরপুরের গাংনী পৌর এলাকার পূর্বমালসাদহ গ্রামের জামাত আলীর ছেলে সাইফ আলীকে প্রায় ৫ লাখ টাকার বিনিময়ে ২০১৭ ইং সালে ১৪ আগষ্ট সাইফকে সিঙ্গাপুরে নিয়ে যান একই গ্রামের রফিকুল ইসলামের ছেলে আশরাফুল ইসলাম ও আব্দুল আজিজের ছেলে সাহেদ আলী। সাইফ  সেখানে শ্রমিক হিসেবে কনসালটেশন এন্ড ইঞ্জিনিয়ারিং লি: (সি জি ডাবলু) নামে একটি কোম্পানীতে কর্মরত ছিলেন। ২০১৮ সালের ৯ নভেম্বর কোম্পানীর ৭তলা ভবনের একটি রুম থেকে সাইফের ঝুলন্ত লাশ উদ্ধার করে পুলিশ। সাইফ আত্মহত্যা করেছে বলে মোবাইল ফোনের মাধ্যমে সাইফের বাড়িতে খবর দেয় আশরাফুল ইসলাম  ও সাহেদ আলী। পরে ১৭ নভেম্বর সাইফের লাশ দেশে আসলে ওই দিনই জানাজা শেষে স্থানীয় গোরস্থান ময়দানে দাফন সম্পন্ন হয়। মৃত্যুর ঘটনায় কোম্পানী বাদি হয়ে একটি মামলা দায়ের করে। যার নং- জি/২০১৮১১০৯/০১৩। সাইফ আলীর বোন পারভীনা খাতুন জানান, বিভিন্ন সূত্রে আমরা জানতে পেরেছি, যেদিন সাইফের লাশ উদ্ধার করা হয়। তার আগে আশরাফুল ইসলাম ও সাহেদ আলী সাইফের সাথে দেখা করে কোম্পানীর প্রধান কার্যালয়ের ৭ম তলায়। এরপর সাইফের ঝুলন্ত লাশ উদ্ধার করে সিঙ্গাপুর পুলিশ। সাইফ আত্মহত্যা করেনি তাকে পরিকল্পিতভাবে হত্যা করা হয়েছে। এ হত্যাকান্ডের সাথে আশরাফুল ও সাহেদ  জড়িত থাকতে পারে বলে সন্দেহ  হচ্ছে। হত্যাকান্ডে জড়িতদের পরিচয় নিশ্চিত করতে আশরাফুল ইসলাম ও সাহেদ আলীর ডিএনএ টেস্ট করা ও লাশের সুরতহালের রির্পোট সংগ্রহের দাবি করেন তিনি। সাইফের মা জানান- আশরাফুল ইসলাম ও সাহেদ আলীর চক্রান্তের কারণে সিঙ্গাপুরের কোম্পানী ও পুলিশ আমাদের সাথে যোগাযোগ করতে পারেনি। কোম্পানী থেকে দেয়া আর্থিক বিষয়টাও আশরাফুল ইসলাম ও সাহেদ আলী হাতিয়ে নিয়েছেন বলে তিনি অভিযোগ করেন। সাইফের বোন পারভীনা খাতুন আরো জানান,তার ভাই হত্যাকান্ডের বিচার পেতে বিভিন্ন লোকজনের কাছে গিয়েছি । কিন্তু কোন কাজ হয়নি। শেষ পর্যন্ত   যুবলীগের সাবেক এক নেতার কাছে গেলে, সে প্রবাসী কল্যাণ মন্ত্রনালয়ে আবেদন করার আশ্বাস দিয়ে ৯ হাজার টাকা নিয়েছেন। কিন্তু তাতে ফলাফল হয়নি। এদিকে ভাই হত্যার বিচার চেয়ে প্রধানমন্ত্রীর সাক্ষাত প্রার্থনা করেন নিহত সাইফের বোন পারভীনা খাতুন। এ বিষয়ে সিঙ্গাপুরে থাকায় আশরাফুল ইসলাম ও সাহেদ আলীর নিকট আত্মীয়রা জানান, আশরাফুল ও সাহেদকে মিথ্যা অভিযোগ দেয়া হয়েছে। বরং সাইফের লাশ দেশে নেয়ার জন্য তারা সহযোগিতা করেছে।

ইবি কর্মকর্তা সমিতির বঙ্গবন্ধুর সমাধিতে শ্রদ্ধাঞ্জলি নিবেদন

জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের টুঙ্গিপাড়ায় সমাধিতে শ্রদ্ধাঞ্জলি নিবেদন করেছে ইসলামী বিশ^বিদ্যালয় কর্মকর্তা সমিতির নব নির্বাচিত কমিটি। ৩০ জানুয়ারি দুপুরে সমিতির সভাপতি মোঃ শামসুল ইসলাম জোহা এবং সাধারণ সম্পাদক মীর মোঃ মোর্শেদুর রহমানের নেতৃত্বে বঙ্গবন্ধুর সমাধিতে শ্রদ্ধাঞ্জলি নিবেদেন শেষে বঙ্গবন্ধুসহ তাঁর পরিবারবর্গের আত্মার শান্তি কামনায় দোয়া ও মোনাজাত করা হয়। এসময় নব নির্বাচিত কমিটির সহ-সভাপতি মোঃ গোলাম আযম বিশ^াস পলাশ, যুগ্ম-সম্পাদক মোঃ রাশিদুজ্জামান খান টুটুল, কোষাধ্যক্ষ মোঃ আব্দুল লতিফ, প্রচার ও দপ্তর সম্পাদক জাহিদুল ইসলাম জাহিদ, সাংস্কৃতিক ও সাহিত্য পত্রিকা সম্পাদক মোঃ ওয়ালিদ হাসান মুকুট, মহিলা বিষয়ক সম্পাদক রাজিয়া সুলতানা ডলি, নির্বাহী সদস্য মোঃ আব্দুর রাজ্জাক, মোঃ উকিল উদ্দিন, মোঃ গোলাম হোসেন, মোঃ বাবুল হোসেন ও মোঃ তোবারক হোসেন বাদলসহ কর্মকর্তাবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন। সংবাদ বিজ্ঞপ্তি

হরিণাকুন্ডুতে সাপের কামড়ে কৃষকের মৃত্যু

ঝিনাইদহ প্রতিনিধি ॥ ঝিনাইদহের হরিণাকুন্ডুতে সাপের কামড়ে এক কৃষকের মৃত্যু হয়েছে। গতকাল শুক্রবার উপজেলার হামিরহাটি গ্রামে আক্কাচ উদ্দিন (৪২) নামের ওই কৃষকের মৃত্যু হয়। নিহত আক্কাচ উদ্দিন গ্রামের নুরুল উদ্দিনের ছেলে। নিহতের ভাতিজা সাদ্দাম হোসেন জানান, তার চাচা সকালে বাড়ির পাশে মাঠে মাটি কাটছিলেন। এ সময় একটি সাপ গর্ত থেকে বের হয়। তখন আক্কাচ উদ্দিন সাপটি ধরে হাঁড়িতে ঢুকাতে গেলে কামড় দেয়। সঙ্গে সঙ্গে মাঠের কৃষকরা তাকে উদ্ধার করে হাসপাতালে নিয়ে যান। ঝিনাইদহ সদর হাসপাতালের চিকিৎসক রুবিনা খাতুন বলেন, সকালে ভর্তি করার পর চিকিৎসা চলাকালীন অবস্থায় স্বজনরা তাকে বাড়িতে নিয়ে যান। দুপুরে ফের হাসপাতালে আনার পর তার মৃত্যু হয়।

রোববার থেকে একুশে বইমেলা

দীপু মাহমুদের উপন্যাস ‘আধিয়ার’ প্রকাশ

বিশেষ প্রতিনিধি ॥ পাঠকপ্রিয় লেখক দীপু মাহমুদ নতুন উপন্যাস লিখেছেন “আধিয়ার”। উপন্যাসের ব্যাপ্তি বিস্তৃত। আধিয়ারের কাহিনিতে এসেছে তেভাগা আন্দোলন, দেশভাগ আর এ সময়ের কৃষকের জীবন। তীব্র সংকটে বিষন্ন কৃষকদের কাছে আসে  তেভাগা আন্দোলনের ঘটনা। ধীরে ধীরে বদলে যেতে থাকে তাদের জীবন। তারা একজোট হয় অধিকার আদায়ে। তারা অনুপ্রাণিত হয় বুড়িমার কাছ থেকে।  তেভাগা আন্দোলনের সময় বুড়িমা ছিলেন কিশোরী বউ। ধান কেটে আধিয়াররা নিজ খোলানে তুলতে লাগল। জমিদারের পুঞ্জ ভেঙে তারা নিজ ধান নিয়ে আসছে দশের খোলানে। বুড়িমার আধিয়ার স্বামীকে ধরে নিয়ে গেছে পুলিশ। বুড়িমাকে খুঁজছে। তিনি গা ঢাকা দিয়েছেন। সেসময় দেশ ভাগ হয়ে গেল। বুড়িমার বাবার বাড়ি, শ্বশুর বাড়ি পড়ল পশ্চিমবঙ্গে। বুড়িমা আত্মগোপন করে আছেন পূর্ববাংলায়। অভিমান কিংবা কষ্টে তিনি ফিরে গেলেন না।

ঋণ করে ধান ফলাতে গিয়ে কৃষক বহর আলি নিজের জমি হারাল। হয়ে গেল বর্গাচাষি। তারপর দিনমজুর। বহর আলি ধান নিয়ে গেল বাজারে। মেয়ে বলল, ‘কতদিন মাংস খাইনি!’ বহর আলি ধান  বেচে মাংস কিনবে ভেবেছিল। মেয়ে খাবে। বহর আলি ধান বেচে মাংস কিনতে পারল না।

বুড়িমার কাছে কৃষকরা তেভাগার ঘটনা শোনে। নিজেদের ভেতর  তৈরি হয় উত্তেজনা। বাংলাদেশের কৃষক আর খেতমজুর অধিকার আদায়ে একজোট হয়ে যায়। তারা দাবি তোলে তেভাগার। জমি যার সে পাবে ফসলের এক ভাগ, বীজ আর চাষের যন্ত্রপাতি যার  সে পাবে একভাগ আর ফসলের একভাগ পাবে চাষি। কৃষক মর্যাদা নিয়ে বাঁচতে সাহস বুকে দাঁড়ায়। যাদের জমি তারা চায় না কৃষক মর্যাদা আর সম্মান নিয়ে বাঁচুক।

অগ্রহায়ণের কুয়াশা মোড়ানো ভোরে সুন্দরদিঘি গ্রামে পুলিশ আসে বুড়িমাকে গ্রেফতার করতে। দলেদলে কৃষক আর খেতমজুররা এগিয়ে আসতে থাকে।

তখন পুব আকাশে আলো ছড়িয়ে সূর্য উঠছে। সূর্যের আলো এসে পড়েছে বুড়িমার লালচাদরে। বুড়িমা হয়ে গেছেন অবিচল সাহস। লড়াই-সংগ্রাম আর আমাদের ঋজু ইতিহাসের কাহিনি আধিয়ার। দীপু মাহমুদ লেখায় সবসময় মানুষের মর্যাদার কথা বলেন। এর আগে তাঁর লেখা উপন্যাস ‘ভূমিরেখা’ আর ‘আলমপনা’তে লেখা হয়েছে মর্যাদা আর সম্মান নিয়ে মানুষের বাঁচার কথা।

দীপু মাহমুদের প্রকাশিত বইয়ের সংখ্যা নব্বই ছাড়িয়েছে।  লেখালেখির স্বীকৃতিস্বরূপ তিনি অগ্রণী ব্যাংক-শিশু একাডেমি শিশুসাহিত্য পুরস্কার, সায়েন্স ফিকশন সাহিত্য পুরস্কার, এম নুরুল কাদের শিশুসাহিত্য পুরস্কার, শিশুসাহিত্যিক মোহাম্মদ নাসির আলী স্বর্ণপদক, আনন্দ আলো শিশুসাহিত্য পুরস্কার, দেশ পান্ডুলিপি পুরস্কারসহ নানা পুরস্কারে ভূষিত হয়েছেন। পেয়েছেন সম্মাননা।

দীপু মাহমুদের জন্ম নানাবাড়ি চুয়াডাঙ্গা জেলার আলমডাঙ্গার প্রাগপুর গ্রামে। শৈশব ও বাল্যকাল কেটেছে দাদাবাড়ি চুয়াডাঙ্গার হাটবোয়ালিয়াতে। পড়াশোনা করেছেন কুষ্টিয়া জেলা স্কুল, কুষ্টিয়া সরকারি কলেজ, রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়, রবীন্দ্রভারতী বিশ্ববিদ্যালয় ও আহছানউল্লা বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ে। পিএইচডি করেছেন যুক্তরাষ্ট্রের আমেরিকান ওয়ার্ল্ড ইউনিভার্সিটিতে। ২০২০ একুশে গ্রন্থমেলায় ‘আধিয়ার’ প্রকাশ করছে পার্ল পাবলিকেশন্স।

ইবি বঙ্গবন্ধু পরিষদের টুঙ্গিপাড়ায় বঙ্গবন্ধুর সমাধিতে শ্রদ্ধাঞ্জলি নিবেদন

জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জন্মশতবার্ষিকী উদ্যাপন উপলক্ষ্যে বছরব্যাপী বিভিন্ন কর্মসূচির অংশ হিসেবে টুঙ্গিপাড়ায় বঙ্গবন্ধুর সমাধিতে শ্রদ্ধাঞ্জলি নিবেদনের মধ্যদিয়ে কর্মসূচির সূচনা করে ইসলামী বিশ^বিদ্যালয় বঙ্গবন্ধু পরিষদের নব গঠিত কমিটি। ৩০ জানুয়ারি দুপুরে ইবি বঙ্গবন্ধু পরিষদের সভাপতি প্রফেসর ড. মোঃ মাহ্বুবুর রহমান এবং সাধারণ সম্পাদক প্রফেসর ড. মোঃ মাহবুবুল আরফিনের নেতৃত্বে বঙ্গবন্ধুর সমাধিতে শ্রদ্ধাঞ্জলি নিবেদেন শেষে বঙ্গবন্ধুসহ তাঁর পরিবারবর্গের আত্মার শান্তি কামনায় দোয়া ও মোনাজাত করা হয়। এসময় ইবি বঙ্গবন্ধু পরিষদের দু’শতাধিক নেতা-কর্মী উপস্থিত ছিলেন। সংবাদ বিজ্ঞপ্তি

সিঙ্গাপুরে আর যেতে চাই না – ওবায়দুল কাদের

ঢাকা অফিস ॥ শারীরিক অবস্থা এখন অনেকটাই ভালোর দিকে আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক এবং সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদেরের। চিকিৎসকদের সঙ্গে কথা বলেছেন। দুই কাপ স্যুপও খেয়েছেন। এখন তার প্রেসার প্রায় স্বাভাবিক – ১৩০/৮০। বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয় (বিএসএমএমইউ) হাসপাতালের কার্ডিওলজি বিভাগের অধ্যাপক ডা. মোস্তফা জামান শুক্রবার বিকেল সাড়ে ৩টায় এ তথ্য জানান। গতকাল সকাল সাড়ে ১০টায় ধানম-িতে আওয়ামী লীগ সভাপতির রাজনৈতিক কার্যালয়ে দলের সম্পাদকম-লীর বৈঠকে গিয়ে শ্বাসকষ্ট অনুভব করেন ওবায়দুল কাদের। পরে সেখান থেকে তিনি বিএসএমএমইউতে ভর্তি হন। ওবায়দুল কাদেরের শারিরীক অবস্থার বিষয়ে অধ্যাপক ডা. মোস্তফা জামান জানান, স্যুপ খাওয়ার পর খানিকটা সুস্থ্যবোধ করছেন ওবায়দুল কাদের। বাসায় ফিরে যেতে উদগ্রীব হয়ে আছেন। বাসায় গিয়ে বিশ্রামে থাকলে সমস্যা হবে কি না তা বারবার জানতে চেয়েছেন। এছাড়াও উন্নত চিকিৎসার জন্য ফের সিঙ্গাপুরে যাবেন কি না সে প্রশ্নও করা হয় ওবায়দুল কাদেরকে। জবাবে ওবায়দুল কাদের বলেন, ‘মাত্র কয়েকদিন আগেই সিঙ্গাপুর থেকে ফিরেছি, এখনই আর সিঙ্গাপুরে যেতে চাই না।’ এদিকে তাকে দেখতে প্রধানমন্ত্রী হাসপাতালে আসছেন শুনে অনেকটা চাঙা অনুভব বরেন ওবায়দুল কাদের। চিকিৎসক ডা. মোস্তফা জামানকে তিনি বলেন, ‘আপা, খোঁজ-খবর নিয়েছেন তাতেই আমি কৃতজ্ঞ। আর আমি তো এখন ভালো আছি। আপার কষ্ট করে আসার দরকার নেই।’ দলের সাধারণ সম্পাদক সুস্থ আছেন বার্তা পেয়ে প্রধানমন্ত্রীর বিএসএমএমইউ’র আসার সিদ্ধান্ত বাতিল হয়েছে বলে জানান ডা. মোস্তফা জামান। এদিকে ওবায়দুল কাদেরকে দেখতে বিএসএমএমইউতে দর্শনার্থীদের ভিড় জমিয়েছে। যে কারণে তাকে আগামীকাল রোববার রাজধানীর সম্মিলিত সামরিক হাসপাতালে (সিএমএইচ) পাঠানো হতে পারে বলে জানা গেছে। এর আগে ওবায়দুল কাদেরের শারীরিক অবস্থা নিয়ে শুক্রবার দুপুরে সাংবাদিকদের ব্রিফ করেছিলেন বিএসএমএমইউর কার্ডিওলজি বিভাগের চেয়ারম্যান অধ্যাপক সৈয়দ আলী আহসান। তিনি বলেছিলেন, ‘উনার শ্বাসকষ্ট হয়েছিল। একটু প্রেশার বেড়ে গিয়েছিল। তবে আতঙ্ক হওয়ার কিছু নেই। আমরা মোটামুটি ট্যাকেল করেছি। উনি এখন শান্ত আছেন। ঘুমের ওষুধ দেয়া হয়েছে। উনি এখন রেস্টে আছেন। উনার রেস্ট প্রয়োজন।’ উন্নত চিকিৎসার জন্য ওবায়দুল কাদেরকে দেশের বাইরে পাঠানো হবে কিনা সাংবাদিকরা জানতে চাইলে তিনি বলেছিলেন, ‘এটি সময়ের ব্যাপার।’ আলী আহসান আরও জানিয়েছিলেন, ‘উনি তো ভালোই ছিলেন। কর্মজীবনে একটু স্ট্রেস (চাপ) হয়। সামনে ইলেকশন আছে। এই স্ট্রেসে হয়তো…। আবার উনার একটু ঠান্ডা আছে। এখন তো ঘরে ঘরে ঠান্ডা জ্বর-সর্দি হচ্ছে। তবে উনি আশঙ্কামুক্ত।’

দৌলতপুরে র‌্যাবের অভিযানে ফেনসিডিলসহ মাদক ব্যবসায়ী আটক

দৌলতপুর প্রতিনিধি ॥ কুষ্টিয়ার দৌলতপুরে র‌্যাবের অভিযানে ফেনসিডিলসহ সুজন আলী (২৯) নামে এক মাদক ব্যবসায়ী আটক হয়েছে। গতকাল শুক্রবার বিকেল সোয়া ৩টার দিকে উপজেলার গাছিরদিয়াড় এলাকায় অভিযান চালিয়ে ৪৫বোতল ফেনসিডিলসহ ওই মাদক ব্যবসায়ীকে আটক করা হয়। সে একই এলাকার হাসেম প্রামানিকের ছেলে। র‌্যাব সূত্র জানায়, মাদক পাচারের গোপন সংবাদ পেয়ে র‌্যাব-১২ কুষ্টিয়া ক্যাম্পের অভিযানিক দল গাছিরদিয়াড় গোবিন্দপুর মোড় এলাকায় অভিযান চালিয়ে ফেনসিডিলসহ মাদক ব্যবসায়ী সুজন আলীকে আটক করে। পরে তাকে দৌলতপুর থানায় সোপর্দ করা হয়েছে।

কোনো প্রার্থীর বাড়ি যাওয়া কূটনীতিকের কাজ নয় – তথ্যমন্ত্রী

ঢাকা অফিস ॥ আওয়ামী লীগের যুগ্ম-সাধারণ সম্পাদক এবং তথ্যমন্ত্রী ড. হাছান মাহমুদ বলেছেন, স্থানীয় সরকার নির্বাচন চলাকালে বিদেশি কূটনীতিকরা যেভাবে বিভিন্ন প্রার্থীর বাড়িতে গিয়েছেন তা সমীচীন হয়নি। কোনো প্রার্থীর বাড়িতে গিয়ে তাকে সহানুভূতি জানানো বিদেশি কূটনীতিকদের যেমন কাজ নয়, তেমনি এটি কূটনীতিরও অংশ নয়। আমি মনে করি এই ক্ষেত্রে কূটনৈতিক শিষ্টাচার লঙ্ঘিত হয়েছে। গতকাল শুক্রবার বিকেলে চট্টগ্রামের হাটহাজারি ইডেন ইংলিশ স্কুলে একটি অনুষ্ঠানে অংশ নেয়ার পর সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে তথ্যমন্ত্রী এসব কথা বলেন। গত ২৩ জানুয়ারি ডিএনসিসিতে বিএনপির মেয়র প্রার্থী তাবিথ আউয়ালের নির্বাচনী অফিসে গিয়ে তার সঙ্গে সাক্ষাৎ করেন যুক্তরাজ্যের হাইকমিশনার রবার্ট চ্যাটার্টন ডিকসন। এছাড়া সেদিন রাতে তাবিথ আউয়ালের সঙ্গে বৈঠক করেন ঢাকায় মার্কিন দূতাবাসের রাজনৈতিক কর্মকর্তা কাজী রুম্মান দস্তগীর। এরপর ২৬ জানুয়ারি দুপুরে ডিএসসিসিতে বিএনপির মেয়র প্রার্থী ইশরাক হোসেনের প্রচারণায় সংঘর্ষের পর তার বাসায় গিয়ে দেখা করে আসেন হাইকমিশনার ডিকসন। হাছান মাহমুদ বলেন, ঢাকা সিটি নির্বাচন নিয়ে তারা যেভাবে কথা বলছেন তা কূটনৈতিক শিষ্টাচারে পড়ে না। অথচ পাশের দেশ ভারতে জাতীয় ও স্থানীয় সরকার নির্বাচনে এভাবে সেখানকার কূটনীতিবিদরা কথা বলেন না কিংবা অন্য কোনো দেশেও কেউ বলেন না। তথ্যমন্ত্রী হাছান মাহমুদ বলেন, বিদেশি কূটনীতিকরা জাতীয় নির্বাচনের চেয়ে বেশি আগ্রহী স্থানীয় সরকার নির্বাচন নিয়ে। ঢাকা সিটি করপোরেশন নির্বাচন নিয়ে ইতোমধ্যে তারা নির্বাচন কমিশনেও দেখা করেছেন। তিনি আরও বলেন, নির্বাচন এলেই বিদেশি কূটনীতিকদের আগ্রহ বেড়ে যায়। এজন্য অবশ্য আমাদেরও কেউ কেউ দায়ী। আপনারা জানেন, কোনো কিছু হলেই বিএনপি বিদেশি কূটনীতিবিদদের ডেকে নালিশ করে। নালিশ তো করবে জনগণের কাছে, দেশের ভোটারের কাছে, কিন্তু তারা নালিশ করে বিদেশিদের কাছে। এটি কোনোভাবেই সমীচীন নয়। তথ্যমন্ত্রী বলেন, নির্বাচন কমিশন বিভিন্ন দূতাবাসের কর্মকর্তাদের পর্যবেক্ষণ কার্ড দিয়েছে। সেখানে আবার ২৮ জন বাংলাদেশি অর্থাৎ বাংলাদেশের পাসপোর্টধারী। এটি কীভাবে দিয়েছে? কেন দিয়েছে? সে নিয়ে যদিও গতকাল (বৃহস্পতিবার) নির্বাচন কমিশনের পক্ষ থেকে ব্যাখ্যা দেয়া হয়েছে। তবে ব্যক্তিগতভাবে আমার কাছে এ ব্যাখ্যা গ্রহণযোগ্য নয়। নির্বাচন কমিশনকে এ বিষয়ে আরও সতর্ক হওয়া প্রয়োজন ছিল।

ভোট নিরাপদে হবে, কেন্দ্রে আসুন – সিইসি

এনএনবি : ঢাকার দুই সিটি করপোরেশন নির্বাচনে ‘নিরাপদে’ ভোট হবে- এই আশ্বাস দিয়ে ভোটারদের কেন্দ্রে যাওয়ার আহ্বান জানিয়েছেন প্রধান নির্বাচন কমিশনার কে এম নূরুল হুদা। ভোটের সঙ্গে সম্পৃক্ত কর্মকর্তা ছাড়াও আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর সদস্যরা নিরপেক্ষ দৃষ্টিভঙ্গি নিয়ে ভোটে দায়িত্ব পালন করবে বলেও আশ্বাস দিয়েছেন তিনি। ঢাকা উত্তর ও দক্ষিণ সিটি করপোরেশনের মেয়র ও কাউন্সিলর পদে নির্বাচনে আজ শনিবার সকাল ৮টা থেকে বিকাল ৪টা পর্যন্ত বিরতিহীনভাবে ভোটগ্রহণ হবে ইভিএমে। দুই সিটি করপোরেশনের ভোটার রয়েছেন ৫৪ লাখ ৬৩ হাজার ৪৬৭ জন। গতকাল শুক্রবার সকাল থেকে আটটি করে মোট ১৬টি ভেন্যু থেকে ঢাকা উত্তর ও দক্ষিণ সিটি করপোরেশনের ২ হাজার ৪৬৮টি কেন্দ্রের ভোটের সরঞ্জাম বিতরণ করা হয়েছে। ঢাকা রেসিডেন্সিয়াল মডেল কলেজে ভোটের সরঞ্জাম বিতরণ কার্যক্রম দেখতে এসে সিইসি সাংবাদিকদের বলেন, “আপনাদের মাধ্যমে ভোটারদের আহ্বান জানাব- আগামীকাল (শনিবার) তারা যেন প্রত্যেকেই ভোটকেন্দ্র যান। “ইভিএমে ভোটদানের ব্যাপারে আমাদের প্রিজাইডিং অফিসার, সহকারী প্রিজাইডিং অফিসার, পোলিং অফিসারদের যথেষ্ট প্রশিক্ষণ দেওয়া হয়েছে। যে কোনো ধরনের সাহায্য সহযোগিতা তারা করবে। ইভিএমে ভোট দিয়ে তারা তাদের ভোটাধিকার প্রয়োগ করবে, এই আহ্বান আমি ভোটারদের প্রতি জানাই।” সিইসি হুদা বলেন, “আইন-শৃঙ্খলা বাহিনীকে আমরা বারবার বলেছি, তারা নিরপেক্ষ দৃষ্টিভঙ্গী নিয়ে দায়িত্ব পালন করবে। প্রিজাইডিং অফিসার, সহকারী প্রিজাইডিং অফিসার, পোলিং অফিসারদের প্রশিক্ষণ দিয়েছি, বারবার বলেছি, সম্পূর্ণভাবে নিরপেক্ষ দৃষ্টিভঙ্গীতে তারা দায়িত্ব পালন করবে। জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট থাকবেন, তাদেরকেও সেরকম ইনস্ট্রাকশন দেওয়া আছে।” মেয়র ও কাউন্সিলর পদের প্রার্থীরা তাদের ‘ইচ্ছা ও সুবিধামত, নির্বিঘেœ, বিনা বাধায়’ প্রচার চালাতে পেরেছেন দাবি করে সিইসি বলেন, “এতে ভোটারদের মধ্যে একটা উৎসবমুখর পরিবেশ সৃষ্টি হয়েছে এবং তাদের আস্থার সৃষ্টি হয়েছে বলে আমি মনে করি। আশা করি আগামীকালের নির্বাচন প্রতিযোগিতামূলকভাবে প্রতিদ্বন্দ্বিতাপূর্ণ হবে, অবাধ হবে, সুষ্ঠু হবে, নিরপেক্ষ হবে।” এই নির্বাচনের মধ্য দিয়ে নির্বাচন কমিশনের উপর রাজনৈতিক দলগুলোর আস্থা ফিরে আসবে বলে মনে করেন কি না- এই প্রশ্নে সিইসি বলেন, “এটা আমি বলতে পারব না। আস্থা-অনাস্থা তাদের মানসিকাতার ওপর, কে কীভাবে দেখে, সেটার ওপরে। আমরা কখনও কোনো পক্ষপাতিত্ব নিয়ে নির্বাচন পরিচালনা করি নাই, করবও না।” নূরুল হুদা বলেন, “দেখেন এই দেশে নির্বাচন কমিশনের প্রতি কোনো দিনও সব রাজনৈতিক দলের আস্থা ছিল- তা আমি দেখি নাই। সুতরাং একদল যারা ক্ষমতায় থাকবেন তাদের এক ধরনের বক্তব্য থাকবে, আবার যারা বাইরে থাকবেন তাদের কখনও আস্থা আসবে না নির্বাচন কমিশনের উপরে, এরকম একটা পলিটিক্যাল কালচার হয়ে আসছে।” নির্বাচন কমিশনের উপর আস্থাহীনতার এই সংস্কৃতি থেকে রাজনৈতিক দলগুলোকে বেরিয়ে আসতে হবে মত দিয়ে সিইসি বলেন, “তাদেরই দেখতে হবে কতখানি নিরপেক্ষভাবে দায়িত্ব পালন করে নির্বাচন কমিশন, এখানে আমার বলার কিছু নেই।” এক প্রশ্নে সিইসি বলেন, “ভোটাররা নিরাপত্তাহীনতায় ভুগছে, এটা এখন তারা মনে করে না বলে আমি মনে করি। নির্বাচন যখনই প্রতিযোগিতামূলক হয়, ভোটাররা বের হয়ে আসে।” মেয়র ও কাউন্সিলর প্রার্থীদের কর্মী-সমর্থকদের উদ্দেশে সিইসি বলেন, “তারা যেন তাদের অবস্থান নিয়ে থাকেন। তারা যেন আইন-শৃঙ্খলা পরিস্থিতির অবনতির সৃষ্টি না করেন। ভোটার ভোট দেবে, ভোট দিয়ে চলে আসবে, ভোটারদের প্রতি যেন আস্থা রাখে। সুশৃঙ্খলভাবে তারা যেন নিজ নিজ অবস্থানে অবস্থান করে। ভোট সামনে রেখে ‘জামায়াত-শিবিরের ক্যাডারদের’ ঢাকায় জড়ো করা হচ্ছে বলে যে অভিযোগ আওয়ামী লীগের রয়েছে- সে বিষয়ে আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর প্রতি বিশেষ কোনো নির্দেশনা ইসির আছে কি না, সেই প্রশ্ন রাখেন একজন সাংবাদিক। জবাবে সিইসি বলেন, “এরকম বিশেষভাবে আমরা বলিনি। কে কোন দলের সেটা বড় কথা না। তবে সন্ত্রাসী যদি ভেতরে ঢোকে অথবা বিশৃঙ্খলা সৃষ্টি করে তবে অবশ্যই আইনশৃঙ্খলা বাহিনী সেটা দেখবে।” বিদেশি পর্যবেক্ষকরা নীতিমালা মেনেই দায়িত্ব পালন করবেন বলেও আশা প্রকাশ করেন হুদা।

 

মানুষ যত বেশি কেন্দ্রে আসবে নৌকার ভোট তত বাড়বে- আতিকুল

ঢাকা অফিস ॥ ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশনে (ডিএনসিসি) আওয়ামী লীগের মেয়র প্রার্থী আতিকুল ইসলাম বলেছেন, মানুষ যত বেশি কেন্দ্রে আসবে নৌকার ভোট তত বাড়বে। নৌকার বিজয় হবেই ইনশাআল্লাহ। বিএনপির প্রতি আহ্বান জানিয়ে তিনি বলেন, নির্বাচনে হার জিত থাকবেই। শেষ মুহূর্ত পর্যন্ত ভোটের মাঠে থাকবেন ফলাফল নিয়ে যাবেন। শুক্রবার বিকেলে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ে (বিএসএমএমইউ) আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদেরকে দেখতে এসে তিনি একথা বলেন। নির্বাচনের জন্য আজকের রাত অনেক গুরুত্বপূর্ণ, শেষ মুহূর্তে নির্বাচনের পরিবেশ কেমন দেখছেন- এমন এক প্রশ্নের জবাবে আতিকুল বলেন, আমি মনে করি, এটি একটি অংশগ্রহণমূলক নির্বাচন। গত ১০ জানুয়ারি থেকে রাত নেই দিন নেই, সব বাদ দিয়ে আমরা কিন্তু মাঠের মধ্যে ছিলাম ইলেকশনের আমেজটা ধরে রাখার জন্য। আমাদের দল এবং বিরোধী দলকে বলব নির্বাচনে হার জিত থাকবেই, শেষ মুহূর্ত পর্যন্ত ভোটের মাঠে থাকবেন। নগরবাসীকে বলব কালকে ছুটির দিন আপনারা সবাই গিয়ে ভোট দেবেন। ওবায়দুল কাদেরকে হাসপাতালে দেখে আতিকুল ইসলাম বলেন, দোয়া করি, রাব্বুল আলামীন আমাদের পার্টির সাধারণ সম্পাদককে যেন দ্রুত সুস্থ করে দেন। সবাইকে অনুরোধ করব তার জন্য দোয়া করবেন। এখন তিনি অনেক ভালো এবং সুস্থ আছেন।