‘বঙ্গবন্ধু গোল্ডকাপ আন্তর্জাতিক ফুটবল টুর্নামেন্ট ’ এর সমাপনী অনুষ্ঠানে প্রধানমন্ত্রী

ফুটবল খেলা দিয়েই আমরা বাংলাদেশকে এগিয়ে নিয়ে যাব 

ঢাকা অফিস \ প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, বাংলাদেশ স্বাধীন হয়েছিল বলেই আমরা ‘বঙ্গবন্ধু গোল্ডকাপ আন্তর্জাতিক ফুটবল টুর্নামেন্ট ২০২০’ আয়োজন করতে পারছি। সবচেয়ে জনপ্রিয় খেলা হলো ফুটবল। এ খেলার মধ্য দিয়েই আমরা বাংলাদেশকে এগিয়ে নিয়ে যাব। গতকাল শনিবার বিকেলে বঙ্গবন্ধু জাতীয় স্টেডিয়ামে ‘বঙ্গবন্ধু গোল্ডকাপ আন্তর্জাতিক ফুটবল টুর্নামেন্ট ২০২০’ এর সমাপনী অনুষ্ঠানে পুরস্কার বিতরণের আগে সংক্ষিপ্ত বক্তব্যে তিনি এ কথা বলেন। টুর্নামেন্টে অংশগ্রহণকারী দলগুলোর প্রতি আহŸান জানিয়ে প্রধানমন্ত্রী বলেন, বাংলাদেশ খুব সুন্দর দেশ। এ ধরনের খেলার আয়োজন যখনই হবে তখন আপনারা বাংলাদেশে আসবেন। বাংলাদেশে এসে খেলাধুলার পাশাপাশি ভ্রমণ করে সুন্দর বাংলাদেশকে দেখতে পারেন, উপভোগ করতে পারেন। প্রধানমন্ত্রী বলেন, জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান বাংলাদেশকে স্বাধীন করেছিলেন বলেই আমরা স্বাধীনভাবে চলতে পারছি এবং খেলাধুলার আয়োজন করতে পারছি। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা টুর্নামেন্টে চ্যাম্পিয়ন দল ফিলি¯িÍন এবং রানার্সআপ বুরুন্ডির খেলোয়াড়দের ধন্যবাদ জানান। এছাড়া অংশগ্রহণকারী সব দেশের খেলোয়াড়, দর্শক এবং সংশ্লিষ্টদের ধন্যবাদ জানান।

২ ঘন্টার মধ্যে রহস্য উদঘাটন

ভাড়াটিয়া স্বামী-স্ত্রীকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ

কুষ্টিয়ায় চুরি দেখে ফেলায় বাড়িওয়ালাকে জবাই করে হত্যা

নিজ সংবাদ \ কুষ্টিয়া শহরতলির ত্রিমহোনী এলাকায় জালাল উদ্দিন (৬৫) নামের এক বৃদ্ধকে জবাই করে হত্যা করা হয়েছে। তার লাশ উদ্ধার করেছে পুলিশ। গতকাল শনিবার দুপুর ২টার দিকে হত্যার ঘটনার দুই ঘন্টার মধ্যে পুলিশ হত্যার রহস্য উৎঘাটন করে জড়িত জালাল উদ্দিনের ভাড়াটিয়া সাহাবুল ইসলাম (২৭) ও তার স্ত্রী মারিয়াকে (২১) আটক করে। জিজ্ঞাসাবাদে তারা জালাল উদ্দিন হত্যার সাথে নিজেদের জড়িত থাকার কথা স্বীকার করে। সাহাবুলের বাড়ি কুষ্টিয়ার মিরপুর উপজেলার নাওয়াপাড়া। একটি বেসরকারি কোম্পানীর বিক্রয় কর্মি ছিল সে। তবে স¤প্রতি তার চাকুরি চলে যাওয়ার পর বেকার হয়ে পড়ে। ৪দিন আগে ত্রিমহোনীতে জালাল উদ্দিনের বাড়ির একটি কক্ষ ভাড়া নেন তারা। দুই কক্ষের অন্যটিতে জালাল উদ্দিন স্ত্রীকে নিয়ে থাকতেন। তার কোন সন্তান ছিল না।

সাহাবুলের উদ্ধৃতি দিয়ে পুলিশ জানায়, চাকুরি চলে যাওয়ার পর বেকার হয়ে পড়ে। একমাত্র বাচ্চার দুধ কেনার মত সামর্থ ছিল না তাদের। এ নিয়ে তারা বিচলিত ছিল। এবস্থায় সাহাবুল ও মারিয়া চাকুরি চলে যাওয়ার পর সংসারে নানা টানাপোড়েন শুরু হয়। তাই নিজের বাড়িওয়ালার ঘরেই চুরি করার সিদ্ধান্ত নেয়। পরিকল্পনা মোতাবেক সাহাবুল গতকাল সকাল ১১/১২ টার দিকে জালাল উদ্দিনকে সাথে নিয়ে নিয়ে গল্প করছিল। আর এ ফাঁকে তার স্ত্রী মারিয়া জালাল উদ্দিনের ঘরে চুরি করতে ঢুকে পড়ে। হঠাৎ শব্দ হলে দৌঁড়ে ঘরে গিয়ে দেখে মারিয়া চুরি করছে। এ সময় প্রতিবাদ করলে ধরা পড়ার ভয়ে সাহাবুল ও মারিয়া বটি দিয়ে জালালকে জবাই করে লাশ ফেলে রেখে চলে যায়। আটক হওয়ার পর পুলিশের জিজ্ঞাসাবাদে এমন তথ্য দিয়ে সাহাবুল দম্পত্তির। ঘটনার দুই ঘন্টার মধ্যেই পুলিশ অভিযুক্তদের গ্রেফতার করে হত্যার রহস্য উম্মোচন করেন।

কুষ্টিয়ার অতিরিক্তি পুলিশ সুপার মো¯Íাফিজুর রহমান বলেন,‘ সাহাবুল ও মারিয়া জালাল উদ্দিনের বাড়িতে ভাড়াটিয়া হিসেবে কয়েকদিন আগে বাড়ি ভাড়া নেন। এরপর চুরি দেখে ফেলায় বাড়ির মালিক জালাল উদ্দিনকে দুইজন মিলে বটি দিয়ে গলা কেটে হত্যা করেন। হত্যর পরে পাশের ঘরে অবস্থান করছিল সাহাবুল ও তার স্ত্রী। জিজ্ঞাসাবাদের  প্রথম দিকে তারা বিষয়টা জানে না বলে জানালেও অধিকতর জিজ্ঞাসাবাদে তারা সব খুলে বলে।

জালাল উদ্দিনের স্ত্রী রীনা খাতুন জানান, হত্যার সময় তিনি বাইরে ছিলেন। বাড়িতে এসে দেখেন স্বামীর মৃতদেহ পড়ে আছে। ভাড়াটিয়ারা তাদের ঘরেই ছিল। পুলিশ এসে তাদের গ্রেফতার করে নিয়ে যায়। তারা সব স্বীকার করেছে। সামান্য অর্থের জন্য তারা এমন ঘটনা ঘটাতে পারে বিশ্বাস করতে কষ্ট হচ্ছে।

নিহত জালাল উদ্দিন বিভিন্ন জিনিস ফেরি করে বিক্রি করতো। পুলিশ নিহত জালালের লাশ উদ্ধার করে ময়না তদন্তের জন্য কুষ্টিয়া জেনারেল হাসপাতাল মর্গে প্রেরন করেছে।

উহানে আটকা ৫০০ বাংলাদেশি শিক্ষার্থীর দেশে ফেরার আকুতি

ঢাকা অফিস \ চীনে করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে এখন পর্যন্ত ৪১ জন মারা গেছেন। দেশটির হুবেই প্রদেশের উহান শহর থেকেই ভাইরাস ছড়ানো শুরু হওয়ায় পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণ করতে এ শহরের সঙ্গে যোগাযোগ ব্যবস্থা বিচ্ছিন্ন রেখেছে চীন। ফলে সেখানকার বাসিন্দাদের সঙ্গে আটকা পড়েছেন অন্তত ৫০০ বাংলাদেশি শিক্ষার্থী। উহানে আটকে পড়া বাংলাদেশি শিক্ষার্থীদের অনেকেই সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে দেশে ফেরার আকুতি জানিয়েছেন। রাকিবুল তূর্য (২৩) নামে এক শিক্ষার্থী মেকানিক্যাল অ্যান্ড অটোমেশন ইঞ্জিনিয়ারিং নিয়ে হুবেই ইউনিভার্সিটি অব টেকনোলজিতে পড়াশোনা করছেন। সামাজিক যোগাযোগমাধ্যম ফেসবুকে তিনি উহানে তাদের অবস্থা জানিয়ে পোস্ট দিয়েছেন। সেখানে তিনি লিখেছেন, স¤প্রতি চায়নায় ছড়িয়ে পড়া করোনাভাইরাসে আক্রান্ত শহর উহানে আমি বাস করছি। এখানে আমরা প্রায় ৫০০ জনেরও অধিক বাংলাদেশি উহানের বিভিন্ন বিশ্ববিদ্যালয়ে ব্যাচেলর, মাস্টার্স ও পিএইচডি প্রোগ্রামে অধ্যায়নরত। উহান থেকে বহির্গামী সব বাস-ট্রেন এবং বিমান চলাচল বন্ধ করে দেয়া হয়েছে। করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে এ পর্যন্ত অন্তত ২৫ জন মারা গেছে এবং ৬০০-এরও বেশি মানুষ এতে আক্রান্ত হয়েছে। আমরা চাইলেও এখন নিজ দেশে ফিরে যেতে পারছি না। তিনি আরও লিখেছেন, বাংলাদেশ দূতাবাস থেকে আমাদের খোঁজখবর নেয়া হচ্ছে এমন নিউজ বাংলাদেশের মিডিয়ায় প্রচার করা হলেও এ খবর ভিত্তিহীন। আমাদের এখন পর্যন্ত কোনো প্রকার খোঁজ নেয়া হয়নি। আমরা সবাই কঠিন মুহূর্ত পার করছি। আলøাহ তায়ালা যেন আমাদের সবাইকে এ বিপদ থেকে রক্ষা করেন। ইমশিয়াত শরিফ নামের পিএইডি করতে যাওয়া এক বাংলাদেশি তার ফেসবুক ওয়ালে লেখেন, ‘চীনের উহান শহরে করোনাভাইরাস ভয়াবহভাবে ছড়াচ্ছে। স্থানীয় সরকার বাস, ট্রেন, বিমান সব বন্ধ করে দিয়েছে। দোকানপাট বন্ধ। মাস্ক পরা বাধ্যতামূলক করে দিয়েছে। এদিকে ইউনিভার্সিটিতে চলছে শীতকালীন ছুটি। ফলে ক্যাস্পাস ফাঁকা, উহান শহরটা একদম জনশূন্য। আতঙ্ক এবং উৎকণ্ঠা বিরাজ করছে। তবুও থেমে নেই জীবন। চলছি চলার মতো করে।’ প্রসঙ্গত করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হওয়ার লক্ষণ হলো জ্বর, শ্বাসকষ্ট, কাশি। অসুখ আরও বাড়লে কিডনি পুরোপুরি নষ্ট হয়ে যেতে পারে। করোনাভাইরাস মরণব্যাধি। সবচেয়ে উদ্বেগের বিষয় হলো এখন পর্যন্ত করোনাভাইরাসের কোনো ওষুধ বা ভ্যাকসিন আবিষ্কার হয়নি। চীনে এখন পর্যন্ত আক্রান্তের সংখ্যা এক হাজার ২৮৭ জনে দাঁড়িয়েছে। মারা গেছেন ৪১ জন । পরিস্থিতি সামলাতে গণপরিবহন বন্ধ করায় উহান ও পার্শ্ববর্তী হুয়াংগ্যাং শহরের অন্তত দুই কোটি বাসিন্দা কার্যত আটকা পড়েছে। উহানের সঙ্গে বিমান ও রেল যোগাযোগ বন্ধ করে দেয়া হয়েছে। এদিকে পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় জানিয়েছে, চীনে আটকে পড়া শিক্ষার্থীরা হটলাইন নম্বরের মাধ্যমে যোগাযোগ করতে পারবেন।

ইভিএম বুথে কেউ যেন জোর করে না ঢোকে – শাহ নেওয়াজ

ঢাকা অফিস \ ইভিএম পদ্ধতিতে ভোট গ্রহণ সহজ হলেও জোর করে কেউ বুথে ঢুকে জাল ভোট দেওয়ার সুযোগ থাকে বলে আশঙ্কার কথা জানিয়েছেন সাবেক নির্বাচন কমিশনার শাহ নেওয়াজ। তাই ঢাকার দুই সিটি নির্বাচনে পর্যবেক্ষণের সময় এই দিকটির দিকে নজর রাখার আহŸান জানিয়েছেন তিনি। আগামী ১ ফেব্র“য়ারি অনুষ্ঠেয় ঢাকা উত্তর ও দক্ষিণ সিটি করপোরেশনের নির্বাচনে সম্পূর্ণ ভোটগ্রহণই হবে ইলেকট্রনিক ভোটিং মেশিন বা ইভিএমে। এই নির্বাচন ধরে গতকাল শনিবার জাতীয় প্রেস ক্লাবে নির্বাচন পর্যবেক্ষকদের নিয়ে কর্মশালার আয়োজন করে ইলেকশন মনিটরিং ফোরাম নামের একটি সংগঠন। ৩১টি নিবন্ধিত ও ২৫টি সহযোগী প্রতিষ্ঠান যুক্ত রয়েছে এই ফোরামে। এবারের নির্বাচনে এর মধ্যে ১০টি সংগঠনের ৫০০ পর্যবেক্ষক দায়িত্ব পালন করবেন বলে জানিয়েছেন ফোরামের সভাপতি মোহাম্মদ আবেদ আলী। কর্মশালায় সাবেক নির্বাচন কমিশনার শাহ নেওয়াজ বলেন, বর্তমানে যে ইভিএম পদ্ধতি চালু হয়েছে, প্রযুক্তির আধুনিকায়নের এই যুগে তা প্রয়োজন ছিল। “কিন্তু এখন পর্যন্ত ইভিএম নিয়ে যা শোনা যাচ্ছে তা হল, একজন ভোটারের ভেরিফিকেশন হওয়ার পর অন্য কেউ দৌড়ে বুথে ঢুকে ভোট দেওয়ার আশঙ্কা। পর্যবেক্ষকদের এই দিকে নজর রাখতে হবে।” “ইভিএম নিয়ে এই মুহূর্তে সমালোচনাকারীদের এটাই সবচেয়ে বড় অভিযোগ। তাই পর্যবেক্ষকদের এই দিকে দৃষ্টি দিতে হবে,” বলেন তিনি। এক দশক আগে এটিএম শামসুল হুদা নেতৃত্বাধীন নির্বাচন কমিশন বাংলাদেশে ইভিএমে ভোটগ্রহণের সূচনা করে। পরবর্তী কাজী রাকিব উদ্দিন আহমদ নেতৃত্বাধীন কমিশন তা নিয়ে বেশি এগোয়নি। ওই কমিশনেই সদস্য ছিলেন সাবেক জজ শাহ নেওয়াজ। কাজী রাকিব কমিশনের পর দায়িত্ব নেওয়া কে এম নূরুল হুদা কমিশন স্থানীয় নির্বাচনের পাশাপাশি জাতীয় নির্বাচনেও ইভিএম ব্যবহার করছে। ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগ ইভিএমে ভোটগ্রহণের পক্ষে থাকলেও বিএনপি এর বিরোধিতা করে আসছে। তারা বলছে, এই ইভিএমে পেপার ট্রেইল না থাকায় জালিয়াতির সুযোগ বেশি। কর্মশালায় সাবেক নির্বাচন কমিশনার শাহ নেওয়াজ নির্বাচন পর্যবেক্ষকদের একটি কেন্দ্রে দীর্ঘ সময় বসে না থেকে কেন্দ্রে কেন্দ্রে ঘোরার পরামর্শ দেন। তিনি বলেন, “কেউ অন্যায় ও অবৈধভাবে ভোট দেওয়ার চেষ্টা করছে কি না, পর্যবেক্ষকদের কাজ হবে সেই বিষয়টি দেখা। এই ক্ষেত্রে কখনই বিতর্কে জড়ানো যাবে না। পর্যবেক্ষকদের কিছু বলার থাকলে তা বলতে হবে প্রিজাইডিং কর্মকর্তাকে।” দায়িত্বপালনকালে অনেক পর্যবেক্ষককে নিয়মভঙ্গ করে নির্দিষ্ট প্রার্থীর পক্ষে কাজ করতে দেখার অভিজ্ঞতার কথা তুলে ধরে এই সাবেক কমিশনার। কর্মশালায় জাতীয় মানবাধিকার কমিশনের সাবেক চেয়ারম্যান কাজী রিয়াজুল হক বলেন, দেশের প্রতিটি নাগরিকেরই কোনো না কোনো দলের প্রতি সমর্থন থাকতে পারে, এটা খুবই স্বাভাবিক। কিন্তু একজন নির্বাচন পর্যবেক্ষককে দায়িত্ব পালনের সময় দল বা পক্ষ ভুলে যেতে হবে। কোনো প্রার্থীর প্রতিনিধির সঙ্গে খুব সখ্য দেখানো যাবে না। এবারের ইভিএম পদ্ধতি নিয়ে নিজের অভিজ্ঞতা নেই উল্লেখ করে রিয়াজুল বলেন, নতুন এই প্রযুক্তি নিয়ে ব্যাপক প্রচারণার প্রয়োজন ছিল। কিন্তু বা¯Íবে তা খুব একটা দেখা যায়নি। পর্যবেক্ষকদের উদ্দেশে তিনি বলেন, “কমিশন আপনাদের জন্য একটি গাইডলাইন ঠিক করেছে। সর্বদা তা অনুসরণ করেই কাজ করতে হবে। অন্যথায় নিরপেক্ষতা প্রশ্নবিদ্ধ হবে।” রোহিঙ্গারা দেশের বিভিন্ন স্থানে পরিচয় গোপন করে ভোটার হওয়ার তথ্য তুলে ধরে কাজী রিয়াজ বলেন, “কোনো ভোট কেন্দ্রে এমন চিত্র দেখা গেলে সঙ্গে সঙ্গে কমিশনকে জানাবেন।” কর্মশালায় অংশগ্রহণকারী বিবি আছিয়া ফাউন্ডেশনের মনির হোসেন বলেন, পর্যবেক্ষকদের দেখা এবং সেই অনুযায়ী কর্মকর্তাদের কাছে প্রতিবেদন দেওয়ার বাইরে আর কোনো কাজ নেই। সুলতানা রাজিয়া নামের একজন বলেন, অনেকে বিভিন্ন সময় র্পযবেক্ষণ সংগঠনগুলোর কাছে পরিচয়পত্র নেওয়ার জন্য ধর্না দেন। “তারা অন্যের কার্ডের ছবি পরিবর্তন করে পর্যবেক্ষক হতে চান। তেই বোঝা যায়, পর্যবেক্ষণের নামে বিভিন্ন প্রার্থীর পক্ষে কাজ করার অশুভ ইচ্ছা অনেকের থাকে। এধরনের লোককে পর্যবেক্ষক করা হলে সংগঠনের ভাবমূর্তি ক্ষুন্ন হতে পারে।” খন্দকার ফারুক আহমেদ বলেন, “প্রিজাইডিং অফিসারের অনুমতি ছাড়া কেউ কেন্দ্রে প্রবেশ করার চেষ্টা করবেন না। নির্বাচন শুরুর আগে কিছু দাপ্তরিক কাজ হয়। সেগুলো দেখার জন্য পর্যবেক্ষকদের সকাল ৮টার আগেই কেন্দ্রে যেতে হবে।”

কুষ্টিয়া প্রেসক্লাবের বার্ষিক বনভোজনে এসপি তানভীর আরাফাত

কুষ্টিয়া প্রেসক্লাব পেশাদার সংবাদকর্মীদের মিলনস্থল

নিজ সংবাদ \ কুষ্টিয়া প্রেসক্লাব, পেশাদার সংবাদকর্মীদের মিলনস্থল। সংবাদ সংগ্রহ, সেই সংবাদ সংশি¬ষ্ট গণমাধ্যমে প্রচার কিংবা প্রকাশে নিরন্তর প্রচেষ্টাই তাদের প্রধান লক্ষ্য। বস্তুনিষ্ঠ সংবাদ পরিবেশনে বড় একটি সময় অতিবাহিত হয় মাতৃপ্রতিম সংগঠন এই প্রেসক্লাবের সংবাদ কর্মীদের। বলা চলে একঘেয়েমিপনার বেড়াজালে বন্দি হয়ে পড়েন তারা। তাই বছরের একটিমাত্র দিন এসব সংবাদকর্মীরা হারিয়ে যান চিত্তবিনোদনের অšে¦ষায়। স্বপরিবার কিংবা শুভানুধ্যায়ীদের সাথে নিয়ে মিলিত হন একটিমাত্র দিন। প্রতিবছরের সেই ধারাবাহিকতা বজায় রেখেছে কুষ্টিয়া প্রেসক্লাব। আয়োজন করেছে বার্ষিক বনভোজনের। কুষ্টিয়া শহরের ঐতিহ্যবাহী রেনউইক বিনোদন পার্কে বসে জেলার গণমাধ্যমকর্মীদের মিলন মেলা। সাথে যুক্ত হন পরিবারের সদস্য, বন্ধুবাবন্ধব, শুভানুধ্যায়ীরা। একদিনের জন্য সংবাদকর্মীদের কর্মব্য¯Íতা ভুলে গিয়ে সকলে মিলে সামিল হয়েছিলেন রেনউইক বিনোদন পার্কে। তীব্র শীত উপেক্ষা করে দলে দলে হাজির হন নির্দিষ্ট গন্তব্যে। আগে থেকেই নির্ধারিত ছিল শিশুদের নানা খেলাধুলার আয়োজন। ছিল বড়দেরও হরেক রকমের খেলাধুলা। আয়োজনের কমতি ছিলনা না¯Íা পানিরও। সকাল থেকেই বনভোজনে আগতদের জন্য রাখা হয় মুড়ি, মুড়কি, শিশুদের জন্য চীপস কিংবা সব বয়সীদের জন্য আনলিমিটেড কফি’র ব্যবস্থা। গড়াই নদীর তীরে হওয়ায় বনভোজনে আগত সব বয়সী মানুষ কিছুটা সময়ের জন্যও হারিয়ে যান প্রকৃতির অপরূপ সৌন্দর্যে। হরেক রকম রাইডে যেন শিশুদের পাশাপাশি শৈশবে ফিরে যান শিশুদের অভিভাবকেরাও। নানান হৈহুলে¬াড় শেষে শুরু হয় মধ্যাহ্নভোজের পালা। মধ্যাহ্নভোজ শেষে অনুষ্ঠিত হয় র‌্যাফেল ড্র। বনভোজন আরো প্রাণবন্ত হয় প্রশাসনের শীর্ষ কর্তাব্যক্তিদের আগমনে।  ব্য¯Íতা ফেলে প্রেসক্লাবের  আমন্ত্রনে কুষ্টিয়ার পুলিশ সুপার এসএম তানভীর আরাফাত বিপিএম(বার) অন্যান্য কর্মকর্তাদের নিয়ে হাজির হন সাংবাদিকদের মিলন মেলা রেনউইক বিনোদন পার্কে। ব্য¯Íতার কারনে উপস্থিত থাকতে পারেননি কুষ্টিয়ার জেলা প্রশাসক মো. আসলাম হোসেন। তবে ঠিকই আমন্ত্রন রক্ষা করেন অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (সার্বিক) আজাদ জাহানসহ জেলা প্রশাসনের অন্যান্য কর্মকর্তাবৃন্দ। সংবাদকর্মীদের আনন্দঘনমুহুর্ত ভাগাভাগি করতে তারাও সামিল হন বনভোজনে। অংশ নেন আকর্ষণীয় হাড়িভাঙ্গা প্রতিযোগিতায়। দিনশেষে র‌্যাফেল ড্র ও পুরস্কার বিতরণ অনুষ্ঠানে পুলিশ সুপার এসএম তানভীর আরাফাতের বক্তব্যে তাই গণমাধ্যমকর্মীদের ভুয়সী প্রশংসা। জানান টানা কর্মব্য¯Íতার মধ্যে সাংবাদিকরা যে বছরের একটিমাত্র দিন পরিবার কিংবা শুভানুধ্যায়ীদের সাথে একত্রে মিলিত হবার সুযোগ পেয়েছেন তা অত্যন্ত সৌভাগ্যের। কারণ তাঁদের ব্য¯Íতার মাঝে এমন সময় বের করা অত্যন্ত দূরূহ ব্যাপার। পুলিশ সুপার বলেন বর্তমানে জেলার আইনশৃঙ্খলা পরিস্থিতি বেশ ভালো। সন্ত্রাস কিংবা মাদক অনেকটাই নির্মুল করা গেছে। জেলার সংবাদককর্মীদের সহায়তায় এসব অপরাধ দমন করা সম্ভব হয়েছে। আশা করি জেলার গণমাধ্যমকর্মীরা আমাকে আমার পুলিশকে যেভাবে সহায়তা করে আসছেন সেই ধারাবাহিকতা অব্যাহত থাকবে।

প্রেসক্লাবের সভাপতি গাজী মাহবুব রহমানের সভাপতিত্বে পুরস্কার বিতরণ অনুষ্ঠানে বক্তব্য রাখেন প্রেসক্লাবের সাধারণ সম্পাদক আনিসুজ্জামান ডাবলু, বনভোজন উদযাপন কমিটির আহŸায়ক লুৎফর রহমান কুমার প্রমুখ।  এদিকে বনভোজন সুষ্ঠুভাবে সম্পন্নের লক্ষ্যে উদযাপন কমিটির পাশাপাশি গঠন করা হয় একাধিক উপ-কমিটি। বার্ষিক বনভোজনে কুষ্টিয়া প্রেসক্লাবের কার্যনির্বাহী পরিষদসহ সকল সদস্য তাদের পরিবারের সদস্যরা উপস্থিত ছিলেন।

আলোচনায় তাহসান-সুস্মিতার ‘স্মৃতির ফানুস’

বিনোদন বাজার \ তাহসানের বেশিরভাগ গানই একক। এবার সংগীতশিল্পী সুস্মিতা আনিসকে সঙ্গে নিয়ে আসছেন একটি ডুয়েট। স্মৃতির ফানুস গানটি নিয়ে এরই মধ্যে দর্শক-শ্রোতাদের মধ্যে আলোচনা চলছে।

১৪ ফেব্রæয়ারি বিশ্ব ভালোবাসা দিবস উপলক্ষে গানটি ভক্তদের উপহার দিতে যাচ্ছেন দুই জনপ্রিয় সংগীতশিল্পী সুস্মিতা আনিস ও তাহসান। রোমান্টিক সফট মেলোডি ঘরানার গানটির কথা লিখেছেন শিল্পী তাহসান খান ও লিমন।

টিউন অ্যান্ড ট্র্যাকস স্টুডিওতে স¤প্রতি রেকর্ড হয়েছে গানটি। নিউ মিউজিক প্যারাডাইম কোম্পানি থেকে প্রকাশ হতে যাওয়া গানটির সুর ও কম্পোজিশন করেছেন তাহসান খান এবং মিউজিকে রয়েছেন মেনন।

গানটির ভিডিওতে দুই কণ্ঠশিল্পীর পাশাপাশি দেখা যাবে তানজিন তিশা ও ইরফান সাজ্জাদকে।

আগামী ৮ ফেব্রæয়ারি সুস্মিতা আনিসের ইউটিউব চ্যানেল এবং অন্যান্য সব ডিজিটাল প্লাটফর্মে মিউজিক ভিডিওটি প্রকাশ করা হবে।

পরিণীতির সুইমস্যুটের দাম ২৫ লাখ!

বিনোদন বাজার \ অভিনয়ে টাইড শিডিউল। এতটুকু দম ফেলার ফুসরত নেই। হাপিয়ে উঠেছেন। তাই ব্য¯Í শিডিউল থেকে সপ্তাহখানেকের বিরতি নিয়ে মালদ্বীপে উড়াল দিয়েছেন পরিণীতি চোপড়া। সেখানে চুটিয়ে ঘোরাঘুরি করছেন এই বলিউড সেনসেশন।

পছন্দের রিসোর্ট, সমুদ্রসৈকত দাবিয়ে বেড়াচ্ছেন জনপ্রিয় এই অভিনেত্রী। মালদ্বীপে পরিণীতির ভ্রমণের খবরের চেয়ে বেশি আলোচিত হচ্ছে তার পরনের সাঁতার স্যুট। সুইমস্যুটটির দাম নিয়ে বেশ আলোচনা হচ্ছে সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে।

ফ্রি প্রেস জার্নালের প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, বৃহস্পতিবার সামাজিক যোগাযোগমাধ্যম ইনস্টাগ্রামে দুটি ছবি শেয়ার করেছেন পরিণীতি। ছবিতে নীল সমুদ্রে বেশ আয়েশি ভঙ্গিতে সময় কাটাতে দেখা যায় তাকে। ছাই রঙের কালো সুইমস্যুট পরা পরিণীতি। চোখে রোদচশমা। স্বল্পবসনা এই অভিনেত্রীকে দেখতে দারুণ লাগছিল।

পরিণীতির সুইমস্যুটটি সবার দৃষ্টি কেড়েছে। এর দাম নিয়ে চলছে গুঞ্জন। তার ওই পোশাকের মূল্য ২৫ লাখ রুপি বলে ধারণা করা হচ্ছে। তার ঘনিষ্ঠজনরা এমন তথ্যই দিয়েছেন।

আবারো মা হচ্ছেন ঐশ্বরিয়া?

বিনোদন বাজার \ সুপারস্টারদের যেকোনো খবর ইন্টারনেট জগতে ঝড় তোলো, এটাই স্বাভাবিক। তা যদি হয় চমক জাগানো, তবে কোনো কথাই নেই।

টুইটারে অভিষেক বচ্চনের একটি পোস্ট নিয়ে নতুন আলোচনা তৈরি হয়েছে। মঙ্গলবার এই পোস্টটি করেছেন তিনি। অভিষেক লিখেছেন, বন্ধুরা! সবার জন্য একটি চমক আছে। সঙ্গেই থাকুন।-খবর বিজনেস টাইমসের।

তার এই পোস্টকে অনেকেই স্ত্রী ঐশ্বরিয়ার গর্ভ ধরনের আভাস হিসেবে ধরে নিয়েছেন। তার এই পোস্টের পর একজন লিখেছেন, আবারও পিতা।

আরেক ইন্টারনেট ব্যবহারকারী বলেন, শুভ সংবাদ। এই গুঞ্জনের পেছনে মুখ্য ভূমিকা রেখেছে অভিনেত্রী ঐশ্বরিয়ার একটি ছবি। এতে ভারতের গোয়া এলাকায় অভিষেকের সঙ্গে সৈকতে হাঁটতে দেখা গেছে তাকে।

ওই ছবি প্রকাশ্যে আসতেই ভক্তদের অনেকেই ঐশ্বরিয়াকে গর্ভবতী ভাবতে শুরু করেন।

বলিউড লাইফের সঙ্গে আলাপকালে একজন প্রত্যক্ষদর্শী অবশ্য এই গুঞ্জনকে উড়িয়ে দেন। তিনি বলেন, ভুল দিক থেকে ছবি তোলাতেই ঐশ্বরিয়াকে ওই দিন গর্ভবতী মনে হচ্ছিল। তবে এই দম্পতি মোটেই দ্বিতীয় সন্তানের প্রত্যাশায় নেই।

সুমনের নাটক ‘সে রাতে সিনথিয়া কথা রেখেছিলো’

বিনোদন বাজার \ ২৪ জানুয়ারি শুক্রবার রাত সাড়ে দশটায় নাগরিক টিভিতে প্রচারিত হয়েছে মাজেদুল এস. সুমনের রচনা ও পরিচালনায় ভিন্ন ধারার নাটক ‘সে রাতে সিনথিয়া কথা রেখেছিলো’।

বঙ্গ বিডির প্রযোজনায় নাটকেিটত অভিনয় করেছেন বর্তমান সময়ের তুমুল জনপ্রিয় অভিনেতা ইয়াশ রোহান, সাবিলা নুর ও জিয়াউল হক পলাশ।

নাটকটির গল্পে দেখা যায়, শহরের ব্যাচেলর যুবক সহজ-সরল শুভ্রের সঙ্গে সিনথিয়ার প্রেম। শুভ্রের চাওয়া সিনথিয়া তাকে একদিন সাধারণ প্রেমিকার মতো আচরণ করবে, শখ করে রান্না করে খাওয়াবে। তবে বরাবরই এতে আপত্তি সিনথিয়ার!

কিন্তু শুভ্রের জন্মদিনে সিনথিয়া মত বদলায়। তিনি রান্না করে খাওয়াতে রাজি হন। সেজন্য রিকশা করে রওনা দেন শুভ্রের বাড়ির দিকে। কিন্তু পথে ঘটে একটি অপ্রত্যাশিত ঘটনা। এরপর গল্প মোড় নেয় ভিন্ন দিকে। এভাবেই এগিয়ে যায় নাটকের গল্প।

বছরের শুরু থেকে বঙ্গের প্রযোজনায় প্রতি শুক্রবার ‘সেই লেভেলের গল্প’ শিরোনামে সাপ্তাহিক নাটক প্রচার শুরু হয়েছে নাগরিক টিভি ও বঙ্গ অ্যাপে। সে ধারাবাহিকতায় (২৪ জানুয়ারি) রাত সাড়ে ১০টায় প্রচার হবে ‘সেই রাতে সিনথিয়া কথা রেখেছিল’। একই সঙ্গে দুই দিন পর থেকে ইড়হমড় ইউ এর এক্সক্লুসিভ কনটেন্ট হিসেবে তাদের ওয়েবসাইট ও অ্যাপে সবসময় নাটকটি দেখা যাবে।

নির্মাতা ইফতেখার আহমেদ ফাহমির ইউনিটে সহকারী পরিচালক হিসেবে চার বছর যাবত কাজ শেখার পর, নিজের লেখা ভিন্নধর্মী গল্পের নাটকটি দিয়েই পরিচালক হিসেবে যাত্রা শুরু করতে যাচ্ছেন মাজেদুল এস. সুমন ।

ভবিষ্যতে ভিন্ন ধর্মী গল্পের আর ও কিছু নাটক নির্মাণের মাধ্যমে নিয়মিত কাজ করে যেতে চান দেশের সর্ব উত্তরের জেলা হিমালয় কন্যা খ্যাত পঞ্চগড় থেকে ঢাকায় আসা এই তরুণ। সামনের দিনগুলোতে তিনি আরো ভালো কাজ উপহার দিতে চান।

‘সাইকো’র পর আসছে ‘পাইলট’

বিনোদন বাজার \ বর্তমানে অনন্য মামুনের ‘সাইকো’ সিনেমার শুটিং চলছে চট্টগ্রামে। এতে অভিনয় করছেন রোশান ও পূজা চেরী। নির্মাতা জানান, এর কাজ প্রায় শেষ দিকে। আগামী ৬ জানুয়ারি শেষ হবে এই সিনেমার শুটিং। এরপর শুরু করবেন নতুন সিনেমা ‘পাইলট’র প্র¯Íুতি। আগামী এপ্রিল থেকে এই সিনেমাটিরও শুটিং শুরু করবেন তারা। এ প্রসঙ্গে অনন্য মামুন বলেন, ‘‘সাইকো’র কাজ এখন শেষই বলা যায়।

এরপর শুরু করবো ‘পাইলট’। শিল্পী নির্বাচনে এবার চমক থাকছে। শিগগিরই ছবিটি নিয়ে বি¯Íারিত জানাবো।’ জানা যায়, ‘সাইকো’ ছবির দুই-একজন শিল্পী ‘পাইলট’-এ থাকবেন। তবে দুটিতেই খল-অভিনেতা হিসেবে থাকবেন রিও। রোশান-পূজা ছাড়াও ‘সাইকো’তে অভিনয় করছেন শহীদুজ্জামান সেলিম ও রোজী সিদ্দিকী। তাদের মেয়ের চরিত্রে দেখা যাবে পূজাকে। রোশানকে দেখা যাবে কিডন্যাপ হওয়া পূজাকে উদ্ধার করা একজন পুলিশ অফিসারের চরিত্রে।

আরবি-এস এন্টারটেইনমেন্ট ও সেলিব্রেটি প্রোডাকশনের ব্যানারে মেজবাহ উদ্দিন প্রযোজিত এই সিনেমাটি চলতি বছরেই মুক্তি দেওয়া হবে।

বঙ্গবন্ধু গোল্ডকাপের শিরোপা জিতল ফিলিস্তিন।

ক্রীড়া প্রতিবেদক \ বঙ্গবন্ধু গোল্ডকাপের ফাইনালে বুরুন্ডিকে ৩-১ গোলে হারিয়ে শিরোপা জিতেছে যুদ্ধবিধ্বফিলিস্তিন। শনিবার বঙ্গবন্ধু জাতীয় স্টেডিয়ামে ফাইনাল ম্যাচটি অনুষ্ঠিত হয়। এ নিয়ে টানা দ্বিতীয়বারের মতো শিরোপা জিতল মাকরাম দাবুবের শিষ্যরা। ম্যাচের ৩ মিনিটেই খালেদ সালেমের গোলে এগিয়ে যায় ফিলি¯িÍন। মোহাম্মদ ডারউইমের কাছ থেকে বল পেয়ে জালে জড়ান সালেম। ম্যাচের ৯ মিনিটে ব্যবধান দ্বিগুণ করেন অধিনায়ক সামেহ মারাবা। মাহমুদ আবুওয়ারদার নেওয়া কর্নার কিক বুরুন্ডির খেলোয়াড়রা ক্লিয়ার করতে না পারলে বল চলে যায় মারাবার কাছে। মারাবা ট্যাপ করলে বল গোললাইনের ভেতরে গিয়ে পড়ে।

২০ মিনিটে গোল শোধ করার সুযোগ পেয়েছিল বুরুন্ডি। কিন্তু ফিলি¯িÍনের গোলরক্ষক তৌফিক আবুহাম্মাদের কারণে গোলবঞ্চিত হয় বুরুন্ডি। ২৬ মিনিটে ব্যবধান ৩-০ করে ফেলে ফিলি¯িÍন। খালেদ সালেমের নেয়া শট পোস্টে লেগে ফিরে আসলে আলতো টোকায় বল জালে পাঠান লাইথ খারুব। ফলে ৩-০ গোলে এগিয়ে থেকেই প্রথমার্ধ্বের খেলা শেষ করে ফিলি¯িÍন। বিরতির পর ৫৫ মিনিটে বুরুন্ডির ফরোয়ার্ড বেঞ্জামিন গাসোংগো গোলরক্ষককে একা পেয়েও গোল করতে পারেননি। এ সময় কর্নার পায় বুরুন্ডি। কর্নার থেকে বল পেয়ে আসমান দিকুমানাকে পাস দেন ব¬ানচার্ড গাবোনজিজার। দিকুমানার নেওয়া শট জালে জড়ায়। বাকি সময়ে আরো বেশি কিছু সুযোগ তৈরি করে তারা। কিন্তু সেগুলোর কোনোটি থেকেই কাঙ্খিত গোলের দেখা পায়নি বুরুন্ডি। আগের আসরের ফাইনালে নির্ধারিত সময় গোলশূন্যথাকার পর টাইব্রেকারে ৪-৩ ব্যবধানে জিতেছিল ফিলি¯িÍন।

চতুর্থ রাউন্ডে নাদাল

ক্রীড়া প্রতিবেদক \ স্বদেশি পাবলো কারেনো বু¯Íাকে সরাসরি সেটে হারিয়ে অস্ট্রেলিয়ান ওপেনের চতুর্থ রাউন্ডে উঠছেন র‌্যাঙ্কিংয়ের শীর্ষ তারকা রাফায়েল নাদাল। রজার ফেদেরারের ২০ গ্র্যান্ড ¯¬্যামের রেকর্ড স্পর্শ করার মিশনে মেলবোর্ন পার্কে শনিবার ৬-১, ৬-২, ৬-৪ গেমে জেতেন ৩৩ বছর বয়সী স্প্যানিশ তারকা।

প্রতিযোগিতার ২০০৯ সালের চ্যাম্পিয়ন নাদাল শেষ ষোলোয় লড়বেন নিক কিরগিয়সের বিপক্ষে। সাড়ে চার ঘনইা স্থায়ী ম্যাচে রাশিয়ার কারেন খাচানোভকে ৬-২, ৭-৬ (৭-৫), ৬-৭ (৬-৮), ৬-৭ (৭-৯), ৭-৬ (১০-৮) গেমে হারান কিরগিয়স। হার্ড কোর্টে নাদালের বিপক্ষে তিনবারের মুখোমুখি লড়াইয়ে দুবার জিতেছেন ২৪ বছর বয়সী এই অস্ট্রেলিয়ান। যুক্তরাষ্ট্রের ঊনবিংশ বাছাই জন ইসনার চোটের কারণে ম্যাচ শেষ করতে পারেননি। সে সময় ৬-৪, ৪-১ গেমে এগিয়ে থাকা সুইজারল্যান্ডের ¯Íানি¯¬াস ভাভরিঙ্কা পেয়ে যান চতুর্থ রাউন্ডের টিকেট। শেষ ষোলোয় উঠেছেন অস্ট্রিয়ার পঞ্চম বাছাই ডমিনিক টিমও। মেয়েদের এককে তৃতীয় রাউন্ড থেকে বিদায় নিয়েছেন দুই নম্বর বাছাই কারোলিনা পি¬সকোভা। আনা¯Íাসিয়া পাভলুচেঙ্কোভার বিপক্ষে ৭-৬ (৭-৪), ৭-৬ (৭-৩) গেমে হেরে যান তিনি। এ¯েÍানিয়ার অনেত কোনতাভিয়েতের বিপক্ষে ৬-০, ৬-১ গেমে হেরে বিদায় নিয়েছেন সুইজারল্যান্ডের ছয় নম্বর বাছাই বেলিন্ডা বেনচিচ। ইউক্রেনের পঞ্চম বাছাই এলিনা ভিতোলিনাকে ৬-১, ৬-২ গেমে উড়িয়ে চতুর্থ রাউন্ডে উঠেছেন দুইবারের গ্র্যান্ড ¯¬্যামজয়ী গার্বিনে মুগুরুসা। এছাড়া সরাসরি সেটে জিতে শেষ ষোলোয় উঠেছেন চতুর্থ বাছাই রোমানিয়ার সিমোনা হালেপ।

 

দর্শককে কটু কথা বলে বিপদে স্টোকস

ক্রীড়া প্রতিবেদক \ একসময় বিতর্ক ছিল তার নিত্য সঙ্গী। তবে সেই দিনগুলিকে পেছনে ফেলেছেন বলেই মনে হচ্ছিল। গত বছর দুয়েকে ২২ গজে অসাধারণ পারফরম্যান্স দিয়েই আলোড়ন তুলেছেন বারবার। কিন্তু আবার বিতর্কে জড়ালেন বেন স্টোকস। দর্শককে কটু কথা বলায় শা¯িÍর সম্মুখীন হতে পারেন আইসিসির বর্তমান বর্ষসেরা ক্রিকেটার। দক্ষিণ আফ্রিকার বিপক্ষে জোহানেসবার্গ টেস্টের প্রথম দিনে শুক্রবার এই কান্ড ঘটান স্টোকস। মাত্র ২ রানে আউট হয়ে ফেরার পথে ড্রেসিং রুমের সিঁড়িতে পা রাখার ঠিক আগে ডান পাশে গ্যালারিতে একজনের দিকে তাকিয়ে ইংলিশ অলরাউন্ডার বলেন, “এসো, মাঠের বাইরে এসে আমাকে এটা বলো…।” এটুকুর পর অশ্রাব্য ভাষায় আরেকটু কথা বলে উঠে যান সিঁড়ি দিয়ে। টিভির সরাসরি স¤প্রচারে সেটা ধরা পড়েনি। তবে পরে ব্রডকাস্টাররা সেই দৃশ্য বেশ কয়েকবার দেখিয়েছেন। সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে তা ভাইরাল হয়ে যায় দ্রুতই। ওই দর্শক স্টোকসকে কি বলেছিলেন, টিভি ক্যামেরায় তা ধরা পড়েনি। তবে ইএসপিএনক্রিকইনফো জানিয়েছে, মধ্য বয়সী ওই দর্শক সম্ভবত বলেছিলেন, স্টোকসকে দেখতে গায়ক এড শিরানের মতো লাগে। মাঠে অশি¬ল কোনো কথার প্রমাণ পেলে সেটিকে আইসিসি আচরণবিধির লেভেল এক ভাঙার অপরাধ হিসেবে গণ্য করা হয়। এটির শা¯িÍ একটি ডিমেরিট পয়েন্ট। স্টোকসের নামের পাশে এখন কোনো ডিমেরিট পয়েন্ট জমা নেই। তাই এই শা¯িÍ পেলে বলা যায় আপাতত রক্ষাই পাবেন স্টোকস। কিন্তু তার কথাকে যদি আঘাতের হুমকি হিসেবে গণ্য করা হয়, তাহলে আচরণবিধির লেভেল তিন ভাঙার অভিযোগ আনা হবে তার বিরুদ্ধে। সেটি প্রমাণিত হলে ৫ থেকে ৬টি ডিমেরিট পয়েন্ট পাবেন স্টোকস, মানে নিশ্চিত নিষেধাজ্ঞা। আর যদি তার কথায় খেলাটির জন্য দুর্নাম বয়ে আনার কিছু পান ম্যাচ রেফারি, তাহলে আচরণবিধির লেভেল এক থেকে চার পর্যন্ত যে কোনো ধারা ভঙ্গের অভিযোগ আনা হতে পারে। লেভেল চার মানে সবচেয়ে গুরুতর অপরাধ। ম্যাচ রেফারি অবশ্য অভিযোগ আনার সময় কিছু কিছু ব্যাপার মাথায় রাখবেন। ওই দর্শকের মন্তব্য স্টোকসকে কতটা উসকে দেওয়ার মতো ছিল, এটা দেখা হবে। স্টোকসের বাবা অসুস্থ হয়ে হাসপাতালে ভর্তি আছেন, তাই তার মানসিক অবস্থাও বিবেচনায় নেওয়া হবে।

শ্রদ্ধা-নোরা, দুই ‘নাচনেওয়ালী’

বিনোদন বাজার \ সিনেমার নাম— ‘স্ট্রিট ড্যান্সার থ্রিডি’। নাম পড়েই হয়তো বুঝতে পেরেছেন নাচ কেন্দ্রিক একটি সিনেমা। বরুণ ধাওয়ানের সহশিল্পী হিসেবে এ সিনেমায় কাজ করেছেন বলিউডের দুই ‘নাচনেওয়ালী’। দু’জনই এর আগে নেচে প্রশংসা কুঁড়িয়েছেন। একজন শ্রদ্ধা কাপুর, অন্যজন নোরা ফাতেহি। তুখোড় দুই নাচনেওয়ালী এই প্রথম একই সিনেমায় অভিনয় করেছেন। ভারতজুড়ে গতকাল মুক্তি  পেয়েছে সিনেমাটি।

রেমো ডি সুজা’র ‘স্ট্রিট ড্যান্সার থ্রিডি’-এর আগে নির্মিত ‘এবিসিডি ২’ বেশ প্রশংসিত হয়। বরুণ আর শ্রদ্ধা নেচে-অভিনয় করে তাক লাগিয়ে দিয়েছিলেন। এবার তার সঙ্গে যুক্ত হয়েছেন নোরা ফাতেহি। তার নাচে এরইমধ্যে সিনেমাপ্রেমীরা বুঁদ হয়ে আছেন।

ড্যান্স নিয়ে সিনেমা নির্মাণের ক্ষেত্রে বরাবরই বেশ জনপ্রিয় পরিচালক ও ড্যান্স মাস্টার রেমো ডি সুজা। ছবির ট্রেলারটিতে যদিও শুধুমাত্র আইসবার্গের ট্রিপ দেখানো হয়েছে। তবে সূত্রের মাধ্যমে জানা গেছে, ছবিতে নাচের এমন স্টেপ দেখানো হবে যা আগে কখনো কেউ দেখেনি। একইসঙ্গে কিছু থ্রিডি সেলুলয়েডে প্রকাশিত হবে, যা সবাইকে মুগ্ধ করবে। বরুণের চেয়ে শ্রদ্ধা ও ফাতেহির নাচে দর্শকরা বেশি মুগ্ধ হবেন বলেও বিভিন্ন সূত্র বলছে।

এই ছবির দৃশ্যধারণ হয়েছে পাঞ্জাব, লন্ডন ও দুবাইয়ে। এ ছবিতে আরো অভিনয় করেছেন ধর্মেশ, পুনিত পাঠক, সালমন ইউসুফ খান, ময়ুরেশ, রাঘব জুয়েলদের মতো রিয়ালিটি শো থেকে উঠে আসা ড্যান্স তারকারা। ছবির বাড়তি পাওনা নিঃসন্দেহে নোরা ফাতেহি এবং অপর শক্তি খুরানা।

গতবছরের শেষেই গরমি শিরোনামে একটি গান মুক্তি পেয়েছে। এতে আবেদনময়ী রূপে হাজির হয়েছেন নোরা। তার সঙ্গে পারফর্ম করেছেন বরুণ ধাওয়ান। এ গানের ভিডিওর পরই সিনেমাটি নিয়ে দর্শকদের আগ্রহ বেড়ে যায়। এখন দেখার পালার ছবিটার ভবিষ্যত্!

পাত্তাই পেল না বাংলাদেশ

ক্রীড়া প্রতিবেদক \ পাকি¯Íানের কাছে পাত্তাই পেল না বাংলাদেশ। দ্বিতীয় টি-টোয়েন্টিতে বাংলাদেশকে ৯ উইকেটে গুঁড়িয়ে দিয়েছে পাকি¯Íান। তিন ম্যাচের সিরিজ তারা জিতে নিল প্রথম দুই ম্যাচেই। লাহোরে শনিবার তামিম ইকবাল খেলেন ৬৫ রানের ইনিংস। কিন্তু বল খেলেন ৫৩টি! ব্যাটিং লাইনআপের বাকিদের অবস্থাও তথৈবচ। ২০ ওভারে তাই বাংলাদেশ করতে পারে কেবল ১৩৬ রান। রান তাড়ায় পাকি¯Íান জিতে অনায়াসে। শুরুতে উইকেট হারালেও বাবর আজম ও মোহাম্মদ হাফিজের শতরানের অবিচ্ছিন্ন জুটিতে জয় ২০ বল বাকি রেখেই। গাদ্দাফি স্টেডিয়ামের উইকেট আগের দিনের মতো অতটা মন্থর ছিল না এ দিন। ১৬০-১৭০ হতে পারত লড়ার মতো রান। বাংলাদেশ পারেনি কাছে যেতেও। বাংলাদেশের ভোগান্তির শুরু ম্যাচের শুরু থেকেই। শাহিন শাহ আফ্রিদির অফ স্টাম্প ঘেঁষা ডেলিভারিতে ব্যাট ছুঁইয়ে আউট হন মোহাম্মদ নাঈম শেখ। এবারের বিপিএলে তিন-চারে নেমে ব্যাটিং সামর্থ্যরে ঝলক দেখানো মেহেদি হাসানকে সুযোগ দেওয়া হয় তিনে। প্রায় দুই বছর পর আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে ফেরার ম্যাচে খানিকটা আশা জাগিয়েছিলেন তিনি ইমাদ ওয়াসিমকে ¯¬গ সুইপে ছক্কা মেরে। কিন্তু মোহাম্মদ হাসনাইনের গতি সামলাতে না পেরে আউট হন বাজে শটে। আরেক পাশে তামিম এগোতে থাকেন নিজের গতিতে। বল প্রতি রান তুলেছেন ঠিকই, কিন্তু ছিল না টি-টোয়েন্টির তাড়া। পাওয়ার পে¬র ৬ ওভারে রান তাই ২ উইকেটে ৩৩। রানের গতিতে দম দিতে পারেননি লিটন দাসও। হারিস রউফকে দৃষ্টিনন্দন একটি চার মারেন, বাকি সময়টা টাইমিং করতে ধুঁকতে দেখা যায় তাকে। তার অবদান ১৪ বলে ৮। ৮ ওভার শেষে উইকেট নেই তিনটি, দলের রান রেট কেবল পাঁচের সামান্য ওপরে। প্রয়োজন ছিল তখন একইসঙ্গে একটি জুটি ও দ্রুত রান। তামিম ও আফিফ হোসেনের জুটি প্রথমটি পেরেছে, দ্বিতীয়টি নয়। শাদাব খানকে পরপর দুই বলে চার ও ছক্কা মারেন আফিফ। ইফতিখারকে বেরিয়ে এসে ছক্কায় ওড়ান তামিম। কিন্তু ছিল না ধারাবাহিকতা। ৪৫ রানের জুটিতে তাই লাগে ৪২ বল। থিতু হওয়ার পর যখন প্রয়োজন ঝড় তোলার, আফিফ আউট তখনই। ২০ বলে করতে পারেন কেবল ২১ রান। অধিনায়ক মাহমুদউল¬াহও এরপর পারেননি বড় শট খেলতে। সৌম্য সরকারের খুব বেশি করার সুযোগই ছিল না। ভরসা ছিলেন কেবল তামিম। কিন্তু দেশের সফলতম ব্যাটসম্যানও পারেননি শুরুর ঘাটতি শেষে পুষিয়ে দিতে। শাদাবকে বাউন্ডারিতে ৪৪ বলে ফিফটি স্পর্শ করেন তামিম। ওই ওভারে মারেন আরও দুটি বাউন্ডারি। ওই ওভারের পর বাকি ছিল ৪ ওভার। তামিম-মাহমুদউল¬াহ জ্বলে উঠলে হয়তো দেড়শ ছুঁতে পারত বাংলাদেশ। পারেননি কেউই। আগের ম্যাচের মতোই রান আউট হন তামিম। ইমাদের দারুণ থ্রো সরাসরি ফেলে দেয় বেলস, তবে দৌড়ের শুরুতে শ¬থ থাকায় দায় ছিল তামিমের নিজেরও। শেষ ওভারে আমিনুল ইসলাম বিপ¬বের দুটি বাউন্ডারিতে বাংলাদেশ যেতে পারে ১৩৬ পর্যন্ত। তবে মাঝ বিরতিতেও বোঝা যাচ্ছিল, ওই স্কোর যথেষ্ট নয়। বাবর ও হাফিজের ব্যাটিংয়ে প্রমাণ হয়েছে সেটিই। শফিউল ইসলাম যদিও নিজের প্রথম ওভারে দলকে উইকেট এনে দিয়েছিলেন আবারও। এহসান আলি আউট হন ৭ বলে শূন্য রান করে। কিন্তু বাংলাদেশের সাফল্যের শেষ ওখানেই। রান রেটের চাপ ছিল না, বাংলাদেশের বোলিং ছিল না ধারাবাহিক। বাবর ও হাফিজ তাই এগিয়েছেন অনায়াসেই। সময় যত গড়িয়েছে, আরও নুইয়ে পড়েছে বাংলাদেশ। শেষ দিকে হাফিজকে ফেরানোর সুযোগ এসেছিল। মু¯Íাফিজের বলে সহজ ক্যাচ ছাড়েন লিটন। ব্যর্থতার ষোলো কলা তাতে পূর্ণ হয়। ১৩১ রানের অপরাজেয় জুটিতে দলকে জিতিয়ে ফেরেন বাবর ও হাফিজ। টি-টোয়েন্টি র‌্যাঙ্কিংয়ের এক নম্বর ব্যাটসম্যান বাবর অপরাজিত ৬৪ করেন ৪৪ বলে। হাফিজ অপরাজিত থেকে যান ৪৯ বলে ৬৭ রান করে। আগের দিন ব্যাটিং ব্যর্থতার পরও কিছুটা লড়াই করতে পেরেছিলেন বোলাররা। এ দিন সেই স্ব¯িÍও মেলেনি। বাংলাদেশ উড়ে গেছে সব বিভাগেই। সংক্ষিপ্ত স্কোর: বাংলাদেশ: ২০ ওভারে ১৩৬/৬ (তামিম ৬৫, নাঈম ০, মেহেদি ৯, লিটন ৮, আফিফ ২১, মাহমুদউল¬াহ ১২, সৌম্য ৫*, বিপ¬ব ৮*; ইমাদ ২-০-১৬-০, আফ্রিদি ৪-০-২২-১, হাসনাইন ৪-০-২০-২, রউফ ৪-০-২৭-১, শাদাব ৩-০-২৮-১, মালিক ২-০-৯-০, ইফতিখার ১-০-১২-০)।

পাকি¯Íান: ১৬.৪ ওভারে ১৩৭/১ (বাবর ৬৬*, এহসান ০, হাফিজ ৬৭*; মেহেদি ৪-০-২৮-০, শফিউল ৩-০-২৭-১, আল আমিন ৩-০-১৭-০, মু¯Íাফিজ ৩-০-২৯-০, বিপ¬ব ২-০-১৬-০, আফিফ ১-০-১৬-০, মাহমুদউল¬াহ ০.৪-০-৩-০)। ফল: পাকি¯Íান ৯ উইকেটে জয়ী।  সিরিজ: ৩ ম্যাচ সিরিজে পাকি¯Íান ২-০তে এগিয়ে। ম্যান অব দা ম্যাচ: বাবর আজম।

ভেড়ামারায় আখচাষে আগ্রহ বাড়ছে কৃষকদের

ভেড়ামারা প্রতিনিধি \ আখের ভালো দাম পাওয়ায় এবং আখ বিক্রির টাকা প্রাপ্তি সহজলভ্য হওয়ায় কুষ্টিয়ার ভেড়ামারায় চাষিদের মাঝে বাণিজ্যিক ভিত্তিতে আখ চাষে আগ্রহ বাড়ছে। অনেক চাষি বিষবৃক্ষ তামাক চাষ বাদ দিয়ে এখন আখ চাষের দিকে ঝুঁকে পড়ছেন। কুষ্টিয়ার জগতি সুপার মিল কর্তৃপক্ষ ২০১৯-২০  আখ মাড়াই মৌসুম শুরু আগেই মাঠে নামে। তাঁরা প্রশিক্ষণ, সভা-সমাবেশ, উঠান ছাড়াও নানাভাবে আখ চাষিদের সাথে মত বিনিময় করে চলেছেন। মিল প্রশাসন বলছে চলতি মৌসুমে মিল জোন এলাকায় পর্যাপ্ত আখ রয়েছে। অসাধু ব্যবসায়ীরা যদি অবৈধ পাওয়ার ক্রাশারে (গুড় তৈরির জন্য মেশিন) যাতে চালাতে না পারে সে ব্যপারেও রেখেছে সজাগ দৃষ্টি। আখ একটি দীর্ঘমেয়াদি ফসল, যা জমিতে প্রায় ১৩-১৪ মাস থাকে। দেশে খাদ্যাভাব যখন কম ছিল, তখন আখচাষ বেশ জনপ্রিয় ছিল। কিন্তু মূল্য কম, ব্রিকির জটিলতা দালাল সিস্টেম বিক্রির পরে টাকা পেতে ভোগান্তি ইত্যাদি কারণে আখ চাষে আগ্রহ হারিয়ে ফেলেছিল চাষি। কিন্ত সেইসব সমস্যা বতমানে নেই। এছাড়াও আখের সঙ্গে সাথী ফসল হিসেবে আমরা ডাল জাতীয় ফসলের মধ্যে মটরশুঁটি, ছোলা, মসুর, মুগ ইত্যাদি। মসলা জাতীয় ফসলের মধ্যে পেঁয়াজ, রসুন ও তেল ফসলের মধ্যে তিল, তিসি, সরিষা, বাদাম ইত্যাদি চাষ করা যায়। সাথী ফসল চাষে জমির ব্যবহার বৃদ্ধি ও জাতীয় উৎপাদন বেড়ে যায়। চাষি আব্দুস সালাম জানান, আখ চাষে সার ও কীটনাশক তেমন ব্যবহার করতে হয় না। অল্প ব্যয়ে ব্যাপক সফলতা পাওয়ায় কৃষকরা আখ চাষে বেশ আগ্রহী হয়ে উঠছেন। আখচাষী হাসেম আলী জানান, সরকার আখের বীজ, সার ও ঋণ দিয়ে সাহায্য করছেন এবং আখ বিক্রি করে টাকা পেতে এখন আর কোনঝামেলা নেই। এজন্য আমরা তামাক চাষ ছেড়ে আখ চাষে আগ্রহী হচ্ছি। আখ চাষি ইসমাইল বিশ^াস এ বছর ৭০বিঘা জমিতে আখ চাষ করেছেন। তিনি জানান, জগতি সুগার মিল কর্তৃপক্ষ আমাদের সকল প্রকার সহযোগিতা দিচ্ছে। আখ বিক্রির ৩ থেকে ৪ দিনের মধ্যে মোবাইলে শিউর ক্যাশের মাধ্যমে আমরা টাকা পেয়ে যাচ্ছি। আগের মত দালাল ধরা লাগে না। মোকারিমপুর ইউনিয়নের ১নং ওয়ার্ড মেম্বার ও আখ চাষি আব্দুস সাত্তার বলেন, সরকারী সহযোগিতা পেয়ে আমরা পূণরায় আখ চাষে ফিরে এসেছি। তিনি এবার ১২বিঘা জমিতে আখচাষ করেছেন। দামুকদিয়া আখ ক্রয় কেন্দ্র-২ এর ইনচার্জ মুশফিকুর রহমান এ প্রতিবেদককে জানান, চাষিদের আখ চাষে আগ্রহী করার জন্য আমরা প্রশিক্ষণ, সভা-সমাবেশ, বাড়ি বাড়ি গিয়ে উঠান বৈঠক ছাড়াও নানাভাবে আখ চাষিদের সাথে মতবিনিময় করছি। এছাড়াও কৃষকদের ভর্তুকিমূল্যে সার, বীজ  কীটনাশক জমি চাষের ট্রাকটর এবং ঋণ প্রদান করা হচ্ছে। আখ ক্রয়কেন্দ্র ভেড়ামারা সাবজোনের প্রধান তোজাম্মেল হোসেন বলেন, এ মৌসূমে ভেড়ামারা উপজেলায় আখ চাষের লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারণ করা হয়েছে ৩হাজার ৪শত একর জমি এবং উৎপাদন ২৮হাজার ৪৫০ মেট্রিক টন আখ।  আশা করি লক্ষ্যমাত্রা পূরণ হবে।

ছেলের সঙ্গে ঈশিতার গান ভাইরাল

বিনোদন বাজার \ নাটকের প্রিয়মুখ ঈশিতার পরিচিতি মূলত অভিনেত্রী হিসেবেই। তবে গানও গান তিনি। উপস্থাপনা, নৃত্য সবকিছুতেই পারদর্শী এই সুদর্শনী।

এবার নতুন আঙ্গিকে দর্শকদের সামনে হাজির হয়েছেন ঈশিতা। ছেলেকে নিয়ে গেয়েছেন গান। ‘আবার এলো যে সন্ধ্যা’ নামে গানটি বুধবার ইউটিউবে মুক্তি পেয়েছে। অডিও-ভিডিও প্রযোজনা প্রতিষ্ঠান জি সিরিজের ব্যানারে গানটি ইউটিউবে প্রকাশ পেয়েছে। দর্শক-শ্রোতারা হুমড়ি খেয়ে পড়েছেন এই গানে।

ঈশিতার গায়ক ছেলের নাম যাভীর। চার বছর বয়স থেকেই সে মায়ের সঙ্গে গুণগুণিয়ে গান গাইতে শিখে।

গানটি নিয়ে ঈশিতা বলেন, ছেলের খুব শখ ছিল আমার সঙ্গে একটি গান করার। তাই দুজন মিলে গানটি করলাম। এই গানটি আমাদের দুজনেরই ভীষণ প্রিয়। আনন্দের সঙ্গে কাজটি করেছি আমরা সবাই। আশা করছি গানটি সবার ভালো লাগবে।

আবার এলো যে সন্ধ্যা মূলত কাভার সং। সংগীতশিল্পী লাকী আখন্দের এই গানটি দ্বৈতভাবে গেয়েছেন মা-ছেলে। ভিডিওতে মডেলও হয়েছেন ঈশিতা ও যাভীর।

এর আগে গেল বছর ঈশিতার গাওয়া ‘আমার অভিমান’ শিরোনামে একটি গান প্রকাশ হয়েছিল। শ্রোতারা ওই গানের প্রশংসা করেন।