কুষ্টিয়া জেলা তথ্য অফিসের শিশু মেলা

গতকাল কুষ্টিয়া জেলা তথ্য অফিসের আয়োজেনে শিশু ও নারী উন্নয়নে সচেতনতামূলক যোগাযোগ কার্যক্রম শীর্ষক প্রকল্পের অধীনে দুই দিনব্যাপী শিশু মেলা দৌলতপুর উপজেলার আল্লারদর্গা মাধ্যমিক বিদ্যালয় মাঠে শুরু হয়েছে। সিনিয়র তথ্য অফিসার মোঃ তৌহিদুজ্জামনের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত শিশু মেলার উদ্বোধন পর্বে প্রধান অতিথি হিসেবে মেলার শুভ উদ্বোধন করেন শারমিন আক্তার উপজেলা নির্বাহী অফিসার দৌলতপুর। বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন জেলা শিশু বিষয়ক কর্মকর্তা মোঃ মোখলেসুর রহমান, উপজেলা শিক্ষা অফিসার মোহাম্মদ মুনতাকিমুর রহমান, আল্লারদর্গা মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের সভাপতি, প্রধান শিক্ষক প্রমূখ।  মেলার দশটি স্টলে শিশু অধিকার, বাল্য বিবাহ, যৌতুক, মাদক ও জাঙ্গীবাদ প্রতিরোধ, নিরাপদ মাতৃত্ব, শিশুর টিকা, শিশুর পানিতে ডুবা রোধ, অটিজম ও মানসিক বিকাশ, পরিস্কার পরিচ্ছন্নতা ইত্যাদি বিষয়ে বিভিন্ন ধরণের প্রদর্শণীর ব্যবস্থা রয়েছে।  শিশু মেলাতে দিনব্যাপী শিশুদের জন্য কবিতা আবৃত্তি, রচনা লিখন, চিত্রাংকন, কুইজ, বালতিতে বল নিক্ষেপ প্রভৃতি প্রতিযোগিতা অনুষ্ঠিত হয়। বিকালে সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান ও সন্ধ্যায় চলচ্চিত্র প্রদর্শণের মাধ্যমে মেলার প্রথম দিনের কার্যক্রম শেষ হয়। আজ বিভিন্ন প্রতিযোগিতার পুরস্কার বিতরণের মাধ্যমে মেলার সমাপ্তি হওয়ার কথা রয়েছে।  সংবাদ বিজ্ঞপ্তি

গাংনীতে গ্রাম পুলিশের উপর হামলা

গাংনী প্রতিনিধি \ মেহেরপুরের গাংনী উপজেলার কোদাইলকাটি গ্রামে ট্যাক্স আদায় করতে গেলে গ্রাম পলিশের (চৌকিদার) উপর হামলার অভিযোগ পাওয়া গেছে। গতকাল বুধবার উপজেলার মটমুড়া ইউপির গ্রাম পুলিশ (চৌকিদার) রবিউল ইসলাম চেয়ারম্যানের নির্দেশে কোদাইল কাটি গ্রামে হোল্ডিং ট্যাক্স আদায় করতে যান। চৌকিদার রবিউল ইসলাম ট্যাক্সের টাকা দাবি করলে কোদাইলকাটি গ্রামের বাদলের ছেলে শহিদুল ইসলাম সেন্টু চৌকিদারকে বেধড়ক মারপিট করে এবং পুলিশের পোশাক ছিড়ে দেয়া হয়। এ ব্যাপারে গ্রামের ইউপি সদস্য বজলুর রহমান জানান, গ্রাম পুলিশকে শারীরিকভাবে লাঞ্ছিত করে সেন্টু অমার্জনীয় অপরাধ করেছেন। আমরা চেষ্টা করছি সেন্টু ও তার পরিবারের লোকজনকে নিয়ে আপোষ মিমাংসার। সেন্টু বর্তমানে পলাতক রয়েছে। ইউপি চেয়ারম্যান সোহেল আহমেদ জানান, আমি  মেম্বর মারফত অভিযোগ পেয়েছি। বিষয়টি নিয়ে আমরা উভয় পক্ষকে নিয়ে বসবো।  এ ব্যাপারে গাংনী  থানার অফিসার ইনচার্জ ওবাইদুর রহমান জানান, আমি এখনও বিষয়টি জানতে পারিনি। অভিযোগ পেলে ব্যবস্থা নেয়া হবে।

গণতন্ত্র সূচকে আট ধাপ এগিয়েছে বাংলাদেশ

ঢাকা অফিস \ বিরোধী দলের অভিযোগের মধ্যেও গণতন্ত্র সূচকে আরো এগিয়েছে বাংলাদেশের অবস্থান। ইকোনমিস্ট ইন্টেলিজেন্স ইউনিটের (ইআইইউ) সর্বশেষ গণতন্ত্র সূচকে (২০১৯ সালের) ৫ দশমিক ৮৮ স্কোর নিয়ে আট ধাপ এগিয়ে ৮০তম স্থানে উঠে এসেছে বাংলাদেশ। এর আগের বছর বাংলাদেশের স্কোর ছিল ৫ দশমিক ৫৭, আর অবস্থান ছিল ৮৮তম। ইআইইউর সূচকে দেখা গেছে, তালিকার উপর এবং নীচের দিক খুব একটা পরিবর্তন না হলেও বাংলাদেশসহ বেশ কয়েকটি দেশের অবস্থানের ‘ উল্লেখযোগ্য অগ্রগতি’ হয়েছে। আট ধাপ এগোলেও সূচকে এখনো প্রতিবেশী ভারতের চেয়ে পিছিয়ে আছে বাংলাদেশ। যদিও নতুন সূচকে ভারতের ১০ ধাপ পিছিয়ে ৫১তম অবস্থানে (৬ দশমিক ৯০ স্কোর) রয়েছে। গণতান্ত্রিক ব্যবস্থায় ভারতের এই পতনের পেছনে ক্ষয়িষ্ণু নাগরিক স্বাধীনতাকে প্রাথমিক কারণ হিসেবে চিহ্নিত করা হয়েছে প্রতিবেদনে। এতে বলা হচ্ছে, ভারতে নাগরিকদের স্বাধীনতা ক্ষুণœ হওয়ার বিষয়টি মূলত সামনে এসেছে গতবছর জম্মু ও কাশ্মীরের বিশেষ মর্যাদা বাতিলের পর। এছাড়া আসামের নাগরিকপঞ্জীও (এনআরসি) এতে ভূমিকা রেখেছে। চূড়ান্ত তালিকা থেকে রাজ্যটির যে ১৯ লাখ নাগরিক বাদ পড়েছে, তাদের অধিকাংশই মুসলিম। ক্ষমতাসীন বিজেপি সরকারের দাবি, বাদপড়াদের বেশিরভাগই বাংলাদেশি অভিবাসী। যদিও বাংলাদেশ শুরু থেকেই ভারতের দাবি নাকচ করে আসছে। এরপর নতুন নাগরিকত্ব আইন দেশটির মুসলিম জনগোষ্ঠির ক্ষোভ আরও বাড়িয়ে দেয়। যার প্রভাবে ভারতের সা¤প্রদায়িক উত্তেজনা সৃষ্টির শঙ্কা দেখা এবং কয়েকটি শহরে বড় ধরনের বিক্ষোভও হয়। নতুন গণতন্ত্র সূচকে একেবারে তলানীর দিকে রয়েছে চীন। সংখ্যালঘুদের দমনের মাত্রা বাড়তে থাকা দেশটির অবস্থান ১৫৩ স্থানে (স্কোর ২. ২৬)।  সংখ্যালঘু মুসলিম নাগরিকদের ধরপাকড় আর নাগরিক স্বাধীনতা খর্ব করার মতো ঘটনার ব্যাপকতার কারণে চীনের পয়েন্ট কমাতে ভূমিকা রেখেছে বলে মনে করছে ইআইইউ। আর ২০১৯ সালে সার্বিকভাবে বৈশ্বিক গণতন্ত্র সূচকের স্কোরও কমেছে। ২০১৮ সালে এই স্কোর ছিল ৫ দশমিক ৪৮, ২০১৯ সালে তা কমে ৫ দশমিক ৪৪ হয়েছে। ইকোনমিস্ট ইন্টেলিজেন্স ইউনিট বলছে, ২০০৬ সালে সূচক প্রকাশের পর থেকে এটাই সবচেয়ে বাজে স্কোর।

ঢাবিতে শিবির সন্দেহে ৪ ছাত্রকে পিটিয়ে পুলিশে দিল ছাত্রলীগ

ঢাকা অফিস \ ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের শহীদ সার্জেন্ট জহুরুল হক হলে চার শিক্ষার্থীকে ছাত্রশিবিরের রাজনীতির সঙ্গে জড়িত থাকার সন্দেহে স্ট্যাম্প ও রড দিয়ে পিটিয়েছে ছাত্রলীগের কয়েকজন নেতা ও কর্মী। এরপর অবস্থার অবনতি হলে হল প্রশাসন, বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রক্টরিয়াল টিম ও পুলিশের মাধ্যমে শাহবাগ থানায় নেওয়া হয়। ঘটনার পর সকালে শিক্ষার্থীদের থানা থেকে নিয়ে আসেন ডাকসু ভিপি নুরুল হক নুর ও সমাজসেবা সম্পাদক আখতার হোসেন। চার ছাত্র হলেন বিশ্ববিদ্যালয়ের ট্যুরিজম অ্যান্ড হসপিটালিটি ম্যানেজমেন্ট বিভাগের দ্বিতীয় বর্ষের শিক্ষার্থী মো. মুকিম চৌধুরী, রাষ্ট্রবিজ্ঞান বিভাগের তৃতীয় বর্ষের শিক্ষার্থী সানওয়ার হোসেন, একই বর্ষের ইসলামের ইতিহাস ও সংস্কৃতি বিভাগের শিক্ষার্থী মিনহাজ উদ্দীন ও আরবি বিভাগের শিক্ষার্থী আফসার উদ্দীন। প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, রাত ১১টার দিকে জহুরুল হক হলের গেস্টরুমে ছাত্রলীগের তথাকথিত গেস্টরুম চলাকালে মো. মুকিম চৌধুরীকে শিবির সন্দেহে ডেকে আনা হয়। সেখানে হল শাখা ছাত্রলীগের সাবেক সহ-সভাপতি আনোয়ার হোসেন ও যুগ্ম-সাধারণ সম্পাদক আমির হামজা তাদের অনুসারীদের নিয়ে ওই শিক্ষার্থীকে মানসিক টর্চার করতে থাকে। পরে শিবির সংশ্লিষ্টতা স্বীকার না করায় লাঠি, স্ট্যাম্প ও রড দিয়ে বেধড়ক মারধর করতে থাকে। মুকিমকে নির্যাতনে কোন কাজ না হওয়ায় পরে তার ফোনের কললিস্ট দেখে সানওয়ার হোসেনকে গেস্টরুমে আনা হয়। সেখানে তাকেও বেধড়ক মারধর করে ছাত্রলীগের নেতারা। এরপর মিনহাজ উদ্দীন এবং আফসার উদ্দীনকে গেস্টরুমে নিয়ে আসে ছাত্রলীগ নেতারা। তাদেরও রাত আড়াইটা পর্যন্ত নির্যাতনের পরে পুলিশে দেয় ছাত্রলীগ। হল সংসদের ভিপি সাইফুল্লাহ আব্বাসী অনন্ত, হল শাখা ছাত্রলীগের সহসভাপতি আনোয়ার হোসাইন ও যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক আমির হামজা সাংবাদিকদের বলেন, ওই চার ছাত্রের শিবির সংশ্লিষ্টতার প্রমাণ পেয়েছিলেন। প্রমাণগুলো তাঁরা পুলিশকে দিয়েছেন। এ বিষয়ে শাহবাগ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আবুল হাসান বলেন, বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসনের পক্ষ থেকে কোনও অভিযোগ না পাওয়ায় ওই চার ছাত্রকে জিজ্ঞাসাবাদের পর ছেড়ে দেওয়া হয়েছে। শিবির সংশ্লিষ্টতার কোনো প্রমাণ পাওয়া গেছে কি না, এ বিষয়ে কোনো মন্তব্য করতে রাজি হয়নি ওসি। এ বিষয়ে জানতে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রক্টর অধ্যাপক ড. এ কে এম গোলাম রব্বানীকে ফোন দিলেও তিনি ফোন রিসিভ করেননি। ঘটনার বিষয়ে ছাত্রলীগের কেন্দ্রীয় সভাপতি আল নাহিয়ান খান বলেছেন, তিনি জানতে পেরেছেন যে শিবিরসংশ্লিষ্টতা থাকায় চার ছাত্রকে থানায় দেওয়া হয়েছে। তবে তাদের মারধর করা হয়েছে কি না, তা তার জানা নেই। তিনি বলেন, কারও ওপর শারীরিক আঘাত কোনোভাবেই গ্রহণযোগ্য নয়। এ বিষয়ে ডাকসুর সহসভাপতি (ভিপি) নুরুল হক নুর বলেন, ছাত্রলীগ হামলা করার জন্য নানা ধরনের অজুহাত সৃষ্টি করে। কখনো তারা বহিরাগত ট্যাগ দেয় কখনো বিতর্কিত নানা ধরনের ট্যাগ দিয়ে দেয়। আর বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন এসব বিষয়ের বিচার না করায় ক্রমাগত এসব ঘটনা বাড়ছে। ভিপির উপর হামলা করে বলে জামাত-শিবির। এখন তাদের সন্ত্রাসী কার্যক্রম কঠোর হ¯েÍ দমন করতে হবে।

কুষ্টিয়ার আব্দালপুরে যুবককে কুপিয়ে হত্যা

নিজ সংবাদ \ গতকাল বুধবার বিকেলে কুষ্টিয়া সদর উপজেলার আব্দালপুর ইউনিয়নের দেড়িপাড়ার মাঠ থেকে রেজাউল ইসলাম (৩২) নামের এক ব্যবসায়ী যুবকের লাশ উদ্ধার করেছে পুলিশ।  নিহত রেজাউল ইসলাম আব্দালপুর গ্রামের মসলেম হকের ছেলে। তার শরীরে কোপানোর চিহ্ন রয়েছে।

পুলিশ ও পরিবার সূত্রে জানা যায় রেজাউল ইসলাম গাছ কেনা  বেচার ব্যবসা করতেন। মঙ্গলবার ব্যবসা শেষে রাতে  সে বাড়িতে ফিরে আসেনি। পরিবারের সদস্যরা সম্ভাব্য স্থানে যোগাযোগ করেও তার সন্ধান পায়নি। ব্যবসায়ীক কাজে অন্য কোথায় যেতে থাকতে পারে বলে তাদের ধারণা ছিল। কিন্তু গতকাল বুধবার দিন শেষে  লোক মারফত তার মৃত্যুর সংবাদ পায়।

এলাকাবাসী সূত্রে জানা যায়, এক পথচারী গতকাল বিকেল ৪টার দিকে আব্দালপুর ইউনিয়নের দেড়িপাড়ার মাঠে একটি লাশ পড়ে থাকতে দেখে চিৎকার চেচামেচি করতে থাকে। সেখানে লোক জড়ো হতে শুরু করে। সংবাদ দেয়া হয় ইবি থানা পুলিশকে। সংবাদ পেয়ে থানার ওসি জাহাঙ্গীর আরিফ সঙ্গীয় ফোর্সসহ ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেন। ওই মাঠ থেকে পুলিশ এলোপাতাড়িভাবে কুপিয়ে হত্যা করা রেজাউলের লাশ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য কুষ্টিয়া জেনারেল হাসপাতাল মর্গে প্রেরণ করে।  পুলিশ জানায়, তার দুই পায়ের রগ কেটে মাথা সহ শরীরের বিভিন্ন স্থানে কুপিয়ে যখম করে হত্যা করা হয়েছে। তবে কেন, কে বা কারা হত্যাকান্ডটি ঘটিয়েছে তা বলতে পারেনি পুলিশ।

এসকে সিনহাকে আদালতে হাজির হতে বিজ্ঞপ্তি প্রকাশের নির্দেশ হাইকোর্টের

ঢাকা অফিস \ দুর্নীতি মামলায় সাবেক প্রধান বিচারপতি এসকে সিনহাসহ ১১ জনকে হাজির হতে পত্রিকায় বিজ্ঞপ্তি প্রকাশের নির্দেশ দিয়েছে আদালত। গতকাল বুধবার ঢাকা মহানগরের বিশেষ সিনিয়র জজ কে এম ইমরুল কায়েস এ আদেশ দেন। আদালত বলছে, এর আগে ৫ জানুয়ারি সাবেক প্রধান বিচারপতি এস কে সিনহাসহ ১১ জনের বিরুদ্ধে গ্রেপ্তারি পরোয়ানা জারি করেন আদালত। আজ ওই গ্রেপ্তারি পরোয়ানার তামিল প্রতিবেদন জমা দেওয়ার দিন ধার্য ছিল। পুলিশ প্রতিবেদনে আদালতকে জানায়, এস কে সিনহাসহ অন্যদের গ্রেপ্তার করা যায়নি। পরে আদালত ওই প্রতিবেদন দিয়ে আসামিদের বিরুদ্ধে পত্রিকায় বিজ্ঞপ্তি প্রকাশের নির্দেশ দেন। এ বিষয়ে প্রতিবেদন ও মামলার শুনানির দিন ঠিক করা হয়েছে আগামী ২০ ফেব্র“য়ারি। দুদকের করা মামলায় আসামিরা হলেন সাবেক প্রধান বিচারপতি সুরেন্দ্র কুমার (এস কে) সিনহা, ফারমার্স ব্যাংকের সাবেক ব্যবস্থাপনা পরিচালক (এমডি) এ কে এম শামীম, ব্যাংকটির সিনিয়র এক্সিকিউটিভ ভাইস প্রেসিডেন্ট ও সাবেক ক্রেডিট প্রধান গাজী সালাহউদ্দিন, ফার্স্ট ভাইস প্রেসিডেন্ট স্বপন কুমার রায়, সিনিয়র ভাইস প্রেসিডেন্ট ও গুলশান শাখার সাবেক ব্যবস্থাপক মো. জিয়া উদ্দিন আহমেদ, গুলশান শাখার ফার্স্ট ভাইস প্রেসিডেন্ট শাফিউদ্দিন আসকারী, ভাইস প্রেসিডেন্ট লুৎফুল হক, এস কে সিনহার কথিত পিএস রণজিৎ চন্দ্র সাহা, রঞ্জিতের স্ত্রী সান্ত্রী রায় (সিমি), টাঙ্গাইলের মো. শাহজাহান ও নিরঞ্জন চন্দ্র সাহা।

তাবিথের ওপর হামলার ঘটনা গুরুত্ব সহকারে দেখা উচিত – কাদের  

ঢাকা অফিস \ আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক এবং সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের বলেছেন, ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশন নির্বাচনে বিএনপির প্রার্থী তাবিথ আউয়ালের ওপর হামলার ঘটনা নির্বাচন কমিশনের গুরুত্ব সহকারে দেখা উচিত। পাশাপাশি এরকম হামলার যাতে পুনরাবৃত্তি না ঘটে সেদিকেও নজর দিতে হবে। তিনি গতকাল বুধবার সকালে লিংরোড-লবণী পয়েন্ট চারলেন সড়কের কাজ পরিদর্শন শেষে এ মন্তব্য করেন। রোহিঙ্গা ইস্যুকে সরকার খুবই গুরুত্ব সহকারে দেখছে বিষয়টি উল্লেখ সেতুমন্ত্রী বলেন, যত দ্রুত সম্ভব রোহিঙ্গা প্রত্যাবাসনে উদ্যোগ নেয়া হবে। সেই লক্ষ্যে মিয়ানমারের ওপর আন্তর্জাতিকভাবে চাপ অব্যাহত রাখছে সরকার। বিএনপির উদ্দেশে আওয়ামী লীগ সম্পাদক বলেন, রাজনীতির মাঠে এখন নালিশ পার্টির উপাধি পেয়েছে বিএনপি। তারা শুধু বিদেশি কূটনীতিকদের কাছে গিয়ে সরকারের বিরুদ্ধে নালিশ করছে। জনসমর্থন হারিয়ে তারা এখন দেউলিয়া হয়েছে। পরিদর্শনকালে উপস্থিত ছিলেন, কক্সবাজার সদর-রামু আসনের সংসদ সদস্য সাইমুম সরওয়ার কমল, মহেশখালী-কুতুবদিয়া আসনের সংসদ সদস্য আশেক উলøাহ রফিক, সংরক্ষিত আসনের সাংসদ কানিজ ফাতেমা আহমেদ, কক্সবাজার জেলা প্রশাসক মো. কামাল হোসেন, পুলিশ সুপার এবিএম মাসুদ হোসেন, জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান মো¯Íাক আহমেদ, জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি অ্যাড. সিরাজুল মো¯Íফা, সাধারণ সম্পাদক এবং পৌর মেয়র মুজিবুর রহমান প্রমুখ। পরিদর্শন শেষে ওবায়দুল কাদের চট্টগ্রামের লোহাগাড়ার চুনতিতে প্রয়াত সামরিক কর্মকর্তা ও প্রধানমন্ত্রীর সামরিক সচিব জয়নাল আবেদীনের চেহলামে যোগ দিতে রওয়ানা দেন। সেখান থেকে ফিরে বিকেলে চকরিয়া সরকারি কলেজ মাঠে অনুষ্ঠিতব্য আওয়ামী লীগের জনসভায় প্রধান অতিথির বক্তব্য রাখবেন তিনি।

কুষ্টিয়াতে আন্তঃবিদ্যালয় বিজ্ঞান মেলার সমাপনী ও পুরস্কার বিতরণকালে ড. সেলিম তোহা

উন্নত বাংলাদেশ বিনির্মাণে বিজ্ঞান শিক্ষার বিকল্প নেই

ইসলামী বিশ^বিদ্যালয়ের ট্রেজারার প্রফেসর ড. মোঃ সেলিম তোহা বলেছেন, ২০৪১ সালে প্রধানমন্ত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনার উন্নত বাংলাদেশ বিনির্মাণে বিজ্ঞান শিক্ষার বিকল্প নেই। তিনি বলেন, জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের সোনার মানুষ গড়তে আমাদের দক্ষ প্রযুক্তি সম্পন্ন মানব সম্পদ গড়ে তুলতে হবে। তিনি বলেন, কুষ্টিয়ার একটি পরিসংখ্যানে দেখা যায় বিজ্ঞান পড়তে ছাত্র-ছাত্রীরা আগ্রহ হারাচ্ছে। যা আমাদের দুর্ভাগের বিষয়। ড. তোহা বলেন, আমি মনেকরি আজকের এই বিজ্ঞান মেলার গুরুত্ব অনেক। এ মেলার মাধ্যমে শিক্ষার্থীদের মাঝে সচেতনতা সৃষ্টি হবে এবং তারা বিজ্ঞানের প্রতি আগ্রহী হবে। এজন্য ফেয়ারকে জানাই ধন্যবাদ। তিনি শিক্ষার্থীদের উদ্দেশ্যে বলেন, তথ্য প্রযুক্তির এ যুগে অবশ্যয় তোমরা প্রযুক্তির ব্যবহার করবে, তবে কোন অবস্থাতেই প্রযুক্তির অপব্যবহার করবেনা। তিনি বলেন, তোমরা বিজ্ঞান শিক্ষার পাশাপাশি মূল্যবোধের চর্চা করে জীবনবোধ সম্পন্ন মানুষ হিসেবে নিজেকে প্রতিষ্ঠিত করবে এই প্রত্যাশা করি। গতকাল বুধবার বিকেলে কুষ্টিয়া সিরাজুল হক মুসলিম মাধ্যমিক বিদ্যালয় মাঠে কুষ্টিয়া ফেয়ারের আয়োজনে এবং বাংলাদেশ ফ্রিডম ফাউন্ডেশনের সহযোগিতায় দিনব্যাপী আন্তঃবিদ্যালয় বিজ্ঞান মেলা ২০২০ সমাপনী ও পুরস্কার বিতরণী অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তৃতায় ড. সেলিম তোহা এসব কথা বলেন। ফেয়ার’র চেয়ারম্যান সামসুন নাহার সিমু’র সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি ছিলেন কুষ্টিয়া জেলা শিক্ষা অফিসার মোঃ জায়েদুর রহমান। প্রধান আলোচক ছিলেন কুষ্টিয়া জজ কোর্টের পাবলিক প্রসিকিউটার অ্যাড. অনুপ কুমার নন্দী। ফাতেমাতুর জোহুরা সানভী’র পরিচালনায় অনুষ্ঠানে সম্মানিত অতিথি হিসেবে বক্তব্য রাখেন ঢাকা হিউম্যান ডেভলপমেন্ট ফাউন্ডেশনের নির্বাহী পরিচালক তাসনিম হাসান হাই,  ফেয়ারের প্রধান উপদেষ্টা নজরুল ইসলাম, মেলা আয়োজক কমিটির আহবায়ক ও চাঁদ সুলতানা মাধ্যমিক বালিকা বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক নাসিরা নাসরিন, কুষ্টিয়া কলকাকলী মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক জেব-উন-নিসা সবুজ এবং কুষ্টিয়া রনজিতপুর মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক মোঃ নাসির উদ্দিন। অনুষ্ঠানে স্বাগত বক্তব্য রাখেন ফেয়ার পরিচালক দেওয়ান আখতারুজ্জামান। এর আগে সকালে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত থেকে দিনব্যাপী এ মেলার আনুষ্ঠানিক উদ্বোধন করেন কুষ্টিয়া সদর উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান মোঃ আতাউর রহমান আতা। এ মেলায় কুষ্টিয়া সদর উপজেলার ৩০টি স্কুলের বিজ্ঞান ক্লাব অংশগ্রহণ করে। আলোচনাসভা শেষে অতিথিবৃন্দ শ্রেষ্ঠ বিজ্ঞান ক্লাব, ষ্টল, বিজ্ঞান প্রজেক্ট, কুইজ ও দেয়াল পত্রিকা মোট ৫ ক্যাটাগরীতে বিজয়ীদের মাঝে পুরস্কার বিতরণ করেন। সংবাদ বিজ্ঞপ্তি

 

কুষ্টিয়ায় জরায়ু মুখ ও স্তন ক্যান্সার সনাক্তকরন বিষয়ক সচেতনতা ক্যাম্পেইন অনুষ্ঠিত

নিজ সংবাদ \ ”ছেলে হোক ,মেয়ে হোক দুটি সন্তানই যথেষ্ট” এই শ্লোগানকে সামনে রেখে  গতকাল বেলা ১০টায় উপজেলা পরিবার পরিকল্পনা কার্যলয় কুষ্টিয়া সদরের উদ্দ্যোগে কুষ্টিয়া সদর উপজেলা, দহকুলা ইউনিয়ন স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কল্যাণ কেন্দ্র, আলামপুর ইউনিয়নে জরায়ু মুখ ও ¯Íন ক্যান্সার সনাক্তকরন বিষয়ক সচেতনতা ক্যাম্পেন অনুষ্ঠিত হয়। অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসাবে উপস্থিত ছিলেন কুষ্টিয়ার জেলা প্রশাসক মো: আসলাম হোসেন। বিশেষ অতিথি ছিলেন পরিবার পরিকল্পনা কুষ্টিয়ার উপ-পরিচালক মোহাম্মদ আলী সিদ্দিকী। অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন কুষ্টিয়া উপজেলা নির্বাহী অফিসার জুবায়ের হোসেন চৌধুরী। অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি বক্তব্যে জেলা প্রশাসক আসলাম হোসেন বলেন জাতির জনক বঙ্গবন্ধুর সোনার বাংলাদেশে চিকিৎসা বিহীন ভাবে আর কোনো মায়ের জাতি যেন এই  সম¯Í ভয়াবহ রোগে আক্রান্ত হয়ে মারা না যায়, সেদিকে আমাদের সব সময় সচেতন থাকতে হবে । অন্যান্যের  মধ্যে উপস্থিত ছিলেন মেডিকেল অফিসার ডা: নওয়াব আলী, এসিটেন্ট মেডিকেল অফিসার ডা: ফেরদৌসী সুলতানা, মো: আক্তারুজ্জামান বিশ্বাস, মো: মিরাজ উদ্দিন শেখ, আব্দুল হান্নান প্রমুখ। উপস্থাপনা করেন পরিবার পরিকল্পনা অফিসার  মো: ওমর ফারুক। অনুষ্ঠানে এলাকার বিভিন্ন পর্যায়ের ব্যক্তিবর্গ ও  সাধারন মানুষ উপস্থিত ছিলেন।

ন্যায়বিচার প্রতিষ্ঠায় সরকার বদ্ধপরিকর – সংসদে প্রধানমন্ত্রী

ঢাকা অফিস \ প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, বর্তমান আওয়ামী লীগ সরকার বিচারপ্রার্থী জনগণের ভোগান্তি লাঘবে সঠিক বিচারের নিশ্চয়তা প্রদান করে দেশে আইনের শাসন প্রতিষ্ঠায় নিরলসভাবে কাজ করে যাচ্ছে। ধনী-গরিব নির্বিশেষে সবার জন্য সমতার ভিত্তিতে সুবিচার নিশ্চিত করা এবং বিচারব্যবস্থার উন্নয়ন সাধন করে সমাজে ন্যায়বিচার প্রতিষ্ঠায় আমাদের সরকার বদ্ধপরিকর। গতকাল বুধবার জাতীয় সংসদে প্রধানমন্ত্রীর জন্য নির্ধারিত প্রশ্নোত্তর পর্বে চট্টগ্রাম-৩ (স›দ্বীপ) আসনের এমপি মাহফুজুর রহমানের তারকাচিহ্নিত প্রশ্নের জবাবে এসব কথা বলেন তিনি। প্রধানমন্ত্রী সুশাসন প্রতিষ্ঠায় তার সরকারের নেয়া বিভিন্ন পদক্ষেপ তুলে ধরে বলেন, বর্তমান আওয়ামী লীগ সরকার আইনের শাসন প্রতিষ্ঠায় অঙ্গীকারবদ্ধ। জনগণের জানমালের নিরাপত্তা প্রদানের জন্য সরকার যথাযথ আইন সংস্কার ও আইনের যথাযথ প্রয়োগ নিশ্চিতকরণের মাধ্যমে আইনের শাসন প্রতিষ্ঠায় কার্যক্রম গ্রহণ করেছে। শোষণ-বঞ্চনামুক্ত ন্যায়ভিত্তিক সমাজ প্রতিষ্ঠা করে আইনের শাসন, মৌলিক মানবাধিকার ও সুবিচার নিশ্চিত করা আমাদের সরকারের মূল লক্ষ্য। একটি স্বাধীন, নিরপেক্ষ ও আধুনিক বিচারব্যবস্থা প্রতিষ্ঠায় আমরা নিরলসভাবে কাজ করে যাচ্ছি। তিনি বলেন, বর্তমান আওয়ামী লীগ সরকার জনগণের মাঝে উপলব্ধি তৈরি করতে সক্ষম হয়েছে যে- সব নাগরিক আইনের চোখে সমান এবং কোনো অপরাধী অপরাধ করে পার পাবে না। কিন্তু দুঃখজনক হলেও সত্য যে, ৭৫এর পরবর্তী সময়ে এদেশে বিচারহীনতার সংস্কৃতি প্রতিষ্ঠিত হয়েছিল। বিএনপির চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার দুর্নীতির মামলার রায়সহ বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ণ মামলার রায় সংসদে তুলে ধরে শেখ হাসিনা বলেন, বর্তমান সরকারের অন্যতম প্রধান সাফল্য হলো যুদ্ধাপরাধীদের বিচার সম্পন্ন করা। আন্তর্জাতিক ট্রাইব্যুনাল প্রতিষ্ঠিত হওয়ার পর থেকে এ যাবৎ ৪৪টি মামলা করা হয়েছে। এর মধ্যে ৪১টি মামলা নিষ্পত্তি হয়েছে। ৯টি মামলার চূড়ান্ত রায় হয়েছে। ৬টি মামলায় আসামিদের মৃত্যুদন্ড কার্যকর করা হয়েছে। ২টি মামলা আসামিদের মৃত্যুজনিত কারণে আনুষ্ঠানিকভাবে সমাপ্ত করা হয়েছে। একটি মামলায় আসামির আমৃত্যু কারাদন্ড প্রদান করা হয়েছে। তিনি বলেন, বর্তমান সময়ে মাদক সমস্যা সমাজে একটি বিষফোড়া। আমাদের সরকার মাদকের বিরুদ্ধে জিরো টলারেন্স নীতি গ্রহণ করেছে। মাদক সংক্রান্ত মামলাগুলোর দ্রুত বিচার নিশ্চিত করার লক্ষ্যে আমরা মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ আইন, ২০১৮ প্রণয়ন করেছি। মাদকের বিরুদ্ধে সামাজিক সচেতনতা বৃদ্ধিতে বর্তমানে আমরা নানামুখী কার্যক্রম গ্রহণ করেছি। শেখ হাসিনা বলেন, বর্তমান সরকার নারীর প্রতি সহিংসতা প্রতিরোধে কাজ করে যাচ্ছে। নারী ও শিশু নির্যাতন সংক্রান্ত অপরাধ বিচারের লক্ষ্যে নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইব্যুনাল গঠন করা হয়েছে।

তিনি বলেন, বিগত পাঁচ বছরের বহুল আলোচিত একুশে আগস্ট গ্রেনেড হামলার মামলা, ১০ ট্রাক অস্ত্র সংক্রান্ত মামলা, সিলেটে চাঞ্চল্যকর জোড়া শিশু হত্যা মামলা, নারায়ণগঞ্জের বহুল আলোচিত চাঞ্চল্যকর ৭ খুনের মামলা এবং জাপানি নাগরিক কুনিও হোশির হত্যা মামলাসহ চাঞ্চল্যকর মামলার বিচার শেষ হয়েছে। ‘দল-মত নির্বিশেষে সন্ত্রাসী ওয়ারেন্টভুক্ত সাজাপ্রাপ্ত আসামিসহ নিয়মিত মামলার আসামি গ্রেফতার করা হচ্ছে। গোয়েন্দা তথ্যের ভিত্তিতে অবৈধ অস্ত্র বিস্ফোরক এবং মাদকদ্রব্যসহ সব ধরনের অবৈধ মালামাল উদ্ধার করতে আইন-শৃঙ্খলা বাহিনীর নিয়মিত ও বিশেষ অভিযান পরিচালনায় আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণ করা হচ্ছে।’ ‘কোনো ব্যক্তি-গোষ্ঠী বা দল যাতে গুজব বা বিভ্রান্তিমূলক তথ্য প্রচার করবে সা¤প্রদায়িক স¤প্রীতি ও সামাজিক স্থিতিশীলতা বিঘ্নিত করতে না পারে সে লক্ষ্যে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমগুলো নিবিড়ভাবে পর্যবেক্ষণ করা হচ্ছে।’ ‘সড়ক মহাসড়কে বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ণ স্থানে চেকপোস্ট স্থাপনসহ আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর টহল জোরদার, চুরি-ছিনতাই-ডাকাতি রোধকল্পে আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর টহল জোরদারের পাশাপাশি গোয়েন্দা নজরদারি বৃদ্ধি করা হয়েছে। ইন্ডাস্ট্রিয়াল পুলিশ, নৌপুলিশ, রেলওয়ে পুলিশ এবং হাইওয়ে পুলিক যথাক্রমে সংশ্লিষ্ট এলাকায় নিরাপত্তা ব্যবস্থা গ্রহণ করা হয়েছে।’ সন্ত্রাসী কর্মকাÐের বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা নেয়া হচ্ছে উল্লেখ করে প্রধানমন্ত্রী বলেন, দেশের সীমান্তবর্তী জেলাগুলোয় অবৈধ অস্ত্র ও গোলাবারুদ এবং মাদকের অনুপ্রবেশ রোধে আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর সার্বক্ষণিক নজরদারি বৃদ্ধি এবং তথ্যপ্রযুক্তির সহায়তায় অপরাধী শনাক্ত ও তাদের আইনের আওতায় আনার কার্যক্রম গ্রহণ করা হয়েছে।

‘ই-পাসপোর্ট কর্মসূচি এবং স্বয়ংক্রিয় বর্ডার নিয়ন্ত্রণ ব্যবস্থাপনার উদ্বোধনকালে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা

ই-পাসপোর্ট জাতির জন্য ‘মুজিব বর্ষের’ উপহার 

ঢাকা অফিস \ প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বাংলাদেশে ই-পাসপোর্ট কর্মসূচি এবং স্বয়ংক্রিয় বর্ডার নিয়ন্ত্রণ ব্যবস্থাপনার উদ্বোধন করে বলেছেন, এটা (ই-পাসপোর্ট) জাতির জন্য ‘মুজিব বর্ষে’ একটি উপহার। প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘আমরা মুজিব বর্ষে দেশের জনগণের হাতে ই-পাসপোর্ট তুলে দিচ্ছি। এটি একটি বিশেষ বছর এবং ঘটনাক্রমে জাতি এ বছর জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জন্মশতবর্ষ উদযাপন করছে।’ তিনি বলেন, ‘এর মাধ্যমে যে কোন দেশে প্রবেশ এবং বহির্গমনের ক্ষেত্রে বাংলাদেশী নাগরিকের ঝামেলামুক্ত চলাচল নিশ্চিত হবে এবং ই-গেটের সর্বাধিক সুবিধা গ্রহণ করা যাবে।’ প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা গতকাল বুধবার সকালে রাজধানীর বঙ্গবন্ধু আন্তর্জাতিক সম্মেলন কেন্দ্রে এক অনুষ্ঠানের মাধ্যমে ‘ই-পাসপোর্ট কর্মসূচি এবং স্বয়ংক্রিয় বর্ডার নিয়ন্ত্রণ ব্যবস্থাপনার উদ্বোধন করেন। দক্ষিণ এশিয়ায় প্রথম এবং বিশ্বে ১১৯ তম দেশ হিসেবে বাংলাদেশে ই-পাসপোর্ট কার্যক্রম আনুষ্ঠানিকভাবে শুরু হয়েছে। প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘আমি বিশ্বাস করি ই-পাসপোর্ট এবং স্বয়ংক্রিয় বর্ডার নিয়ন্ত্রণ ব্যবস্থাপনা সন্দেহাতীতভাবে ডিজিটাল বিশ্বে বাংলাদেশের জনগণের মর্যাদা আরো সমুন্নত করবে এবং বাংলাদেশ আরো এক ধাপ এগিয়ে যাবে।’ শেখ হাসিনা বলেন, ‘ই-পাসপোর্টে এমবেডেড ইলেকট্রনিক মাইক্রো প্রসেসর চিপ থাকবে। যেখানে পাসপোর্ট গ্রহিতার সকল তথ্য, স্বাক্ষর, ছবি, চোখের কর্ণিয়া এবং ফিঙ্গার প্রিন্ট সিল্ড অবস্থায় সুরক্ষিত থাকে।’ তিনি আরো উল্লেখ করেন, ‘অতীতে একটা সমস্যা ছিল পাসপোর্ট নিয়ে। একসময় গলাকাটা পাসপোর্টও দেশে প্রচলিত ছিল, সেটা আর কখনো হবে না। মানুষ আর ধোঁকায় পড়বে না। স্বচ্ছতার সাথে চলবে’,বলেন তিনি। স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান কামাল অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন। ঢাকায় জার্মান রাষ্ট্রদূত পিটার ফাহরেনহোল্টস অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন। বহির্গমন এবং পাসপোর্ট অধিদপ্তরের (ডিআইপি) মহাপরিচালক মেজর জেনারেল শাকিল আহমেদ অনুষ্ঠানে স্বাগত বক্তৃতা করেন এবং স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের সুরক্ষা সেবা বিভাগের সচিব মো.শহিদুজ্জামান অনুষ্ঠানে বক্তৃতা করেন। ই-পাসপোর্ট প্রকল্পের পরিচালক বিগ্রেডিয়ার জেনারেল সাইদুর রহমান খান প্রকল্পের বিভিন্ন দিক তুলে ধরেন। স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অনুষ্ঠানে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার হাতে তাঁর ই-পাসপোর্টটি হ¯Íান্তর করেন। প্রধানমন্ত্রী অনুষ্ঠানে ই-পাসপোর্ট ভবনের ফলক উন্মোচন করেন এবং এনরোলমেন্ট বুথ পরিদর্শন করেন। অনুষ্ঠানে মন্ত্রিপরিষদ সদস্যবৃন্দ, প্রধানমন্ত্রীর উপদেষ্টাগণ, সংসদ সদস্যবৃন্দ, উর্ধ্বতন সামরিক ও বেসামরিক কর্মকর্তাবৃন্দ, বিভিন্ন দেশের রাষ্ট্রদূত এবং কূটনীতিক, উন্নয়ন সহযোগী সংস্থার প্রতিনিধি এবং আমন্ত্রিত অতিথিবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন। এই ই-পাসপোর্ট ব্যবস্থা প্রবর্তন বিশ্বে বাংলাদেশের ভাবমূর্র্তি উজ্জ্বল করার পাশাপাশি আধুনিক সুরক্ষা নিশ্চিত করবে এবং ইমিগ্রেশন পদ্ধতি সহজীকরণ করবে বলে গত মঙ্গলবার এক সাংবাদিক সম্মেলনে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান কামাল জানান। স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, ‘মেশিন রিডেবল পাসপোর্ট’কে (এমআরপি) আরও অধিকতর নিরাপত্তা সম্বলিত করার জন্য ‘বাংলাদেশে ই-পাসপোর্ট এবং অটোমেটেড বর্ডার কন্ট্রোল ম্যানেজমেন্ট সিস্টেমের বা¯Íবায়ন’ প্রকল্প গ্রহণ করা হয়।’ তিনি বলেন, স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের সুরক্ষা সেবা বিভাগের আওতাধীন ইমিগ্রেশন ও পাসপোর্ট অধিদফতর বাংলাদেশ সেনাবাহিনীর সহযোগিতায় জার্মান কোম্পানি ভেরিডোস জিএমবিএইচ কর্তৃক ই-পাসপোর্ট ও স্বয়ংক্রিয় বর্ডার নিয়ন্ত্রণ ব্যবস্থাপনা প্রকল্প বা¯Íবায়ন করছে। প্রকল্প ব্যয় ধরা হয়েছে ৪ হাজার ৫শ ৬৯ কোটি টাকা। ই-পাসপোর্টের মেয়াদ হবে ৫ থেকে ১০ বছর। স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, প্রাথমিকভাবে ডিআইপি তাদের আগারগাঁও, যাত্রাবাড়ি এবং উত্তরা কার্যালয় থেকে এই পাসপোর্ট ইস্যু করবে। পর্যায়ক্রমে এ বছর থেকেই দেশের সবখান থেকে এই পাসপোর্ট ইস্যু করা সম্ভব হবে বলেও তিনি আশাবাদ ব্যক্ত করেন। রাষ্ট্রপতি মো. আব্দুল হামিদ এবং প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা সর্বপ্রথম এই পাসপোর্ট লাভ করেছেন উল্লেখ করে তিনি বলেন, প্রতিদিন প্রয়োজনে ২৫ হাজার পাসপোর্ট ইস্যু করা সম্ভব হবে। সংবাদ সম্মেলনে দেওয়া তথ্য মতে, ৪৮ পৃষ্ঠার ৫ বছর মেয়াদি পাসপোর্টের সাধারণ ফি ৩,৫০০ টাকা, জরুরি ফি ৫,৫০০ টাকা ও অতীব জরুরি ফি ৭,৫০০ টাকা এবং ১০ বছর মেয়াদি পাসপোর্টের সাধারণ ফি ৫,০০০ টাকা, জরুরি ফি ৭,০০০ টাকা ও অতীব জরুরি ফি ৯,০০০ টাকা। নতুন পাসপোর্টের ক্ষেত্রে অতীব জরুরিতে ৩ দিনে, জরুরিতে ৭ দিনে ও সাধারণ পাসপোর্ট আবেদনের ক্ষেত্রে ২১ দিনে পাসপোর্ট পাওয়া যাবে। তবে পুরনো অথবা মেয়দোত্তীর্ণ পাসপোর্ট রি-ইস্যু করার ক্ষেত্রে অতীব জরুরি পাসপোর্ট ২ দিনে, জরুরি পাসপোর্ট ৩ দিনে ও সাধারণ পাসপোর্ট ৭ দিনের মধ্যে দেওয়া হবে। আলাদা আলাদা ই-পাসপোর্ট ফি নির্ধারণ করা হয়েছে। বিদেশে বাংলাদেশ দূতাবাসে সাধারণ আবেদনকারীদের জন্য ৪৮ পৃষ্ঠার ৫ বছর মেয়াদি সাধারণ ফি ১০০ মার্কিন ডলার ও জরুরি ফি ১৫০ মার্কিন ডলার। ১০ বছর মেয়াদি পাসপোর্টের সাধারণ ফি ১২৫ মার্কিন ডলার ও জরুরি ফি ১৭৫ মার্কিন ডলার নির্ধারণ করা হয়েছে। ই-পাসপোর্টের আবেদনপত্র জাতীয় পরিচয়পত্র (এনআইডি) বা জন্মনিবন্ধন সনদ (বিআরসি) অনুযায়ী পূরণ করতে হবে। অপ্রাপ্ত বয়স্ক (১৮ বছরের কম) আবেদনকারী, যার জাতীয় পরিচয়পত্র (এনআইডি) নেই, তার পিতা-মাতার জাতীয় পরিচয়পত্র (এনআইডি) নম্বর অবশ্যই সংশ্লিষ্ট তথ্য হিসেবে উল্লেখ করতে হবে। উল্লেখ্য, ই-পাসপোর্ট চালু হলে সমগ্র ইমিগ্রেশন প্রক্রিয়াটি অন-লাইনে সম্পন্ন করা সম্ভব হবে।’ প্রধানমন্ত্রী বলেন, ২০০৮ সালে দ্বিতীয় মেয়াদে আওয়ামী লীগ সরকার গঠনের পরই তিনি বঙ্গবন্ধুর স্বপ্নের ক্ষুধা ও দারিদ্রমুক্ত ‘সোনার বাংলাদেশ’ প্রতিষ্ঠার পাশাপাশি দেশকে ‘ডিজিটাল বাংলাদেশ’ হিসেবে গড়ে তোলার কার্যকর পদক্ষেপ গ্রহণ করেন। তিনি বলেন, ‘সেই নির্বাচনী ইশতেহারেই আমরা ঘোষণা দিয়েছিলাম বাংলাদেশ হবে ডিজিটাল বাংলাদেশ। কারণ কম্পিউটার শিক্ষা বা ডিজিটাল ডিভাইস যেন বাংলাদেশের মানুষ ব্যবহার করতে পারে। ’৯৬ সালে কিছু উদ্যোগ নিলেও তা সম্পূর্ণ করে যেতে পারিনি তাই ২০০৮ সালে ক্ষমতায় এসেই সেই উদ্যোগটা নেই।’ ‘দেশের স্কুল, কলেজ, অফিস, বিশ্ববিদ্যালয়, আদালত-সকল ক্ষেত্রেই আধুনিক প্রযুক্তি ব্যবহারের জন্য শিক্ষা ও প্রশিক্ষণের ব্যবস্থা করি, কম্পিউটার-ল্যাপটপ জনগণের কাছে সহজলভ্য করার জন্য এসব যন্ত্রাংশ থেকে ট্যাক্স প্রত্যাহার করি। যার সুফল আজকে আমরা পাচ্ছি। দেশে একটা ডিজিটাল বিপ্লব সাধিত হয়েছে, ’বলেন তিনি। ইন্টারনেটের জন্য সাড়ে ৩ হাজার ইউনিয়নে সাবমেরিন কেবল সুবিধা পৌঁছে দেয়া, মহাকাশে বঙ্গবন্ধু-১ স্যাটেলাইট উৎক্ষেপণ এবং নতুন নতুন প্রযুক্তির সঙ্গে জনগণকে পরিচয় করিয়ে দেয়ায় তাঁর সরকারের উদ্যোগ তুলে ধরেন প্রধানমন্ত্রী। স্বল্পতম সময়ে ই-পাসপোর্ট চালুর উদ্যোগ গ্রহণে এবং এরআগে মেশিন রিডেবল পাসপোর্ট চালু করায় ইমিগ্রেশন এবং পাসপোর্ট অধিদপ্তর সহ সংশ্লিষ্ট সকল মহলকে ধন্যবাদ জানিয়ে শেখ হাসিনা বলেন, ‘আমরা একেকবার নতুন প্রযুক্তি নিয়ে আসছি এবং সেটা যে তারা কার্যকর করতে পারছেন এজন্য সংশ্লিষ্ট সকলকে আন্তরিক ধন্যবাদ জানাচ্ছি।’ ‘বাংলাদেশকে উচ্চ মর্যাদায় অধিষ্ঠিত করার লক্ষ্য’ নিয়ে তাঁর সরকার কাজ করে যাচ্ছে উল্লেখ করে প্রধানমন্ত্রী ই-পাসপোর্ট প্রসংগে বলেন, ‘একটি আধুনিক প্রযুক্তি সম্পন্ন পদ্ধতি আমরা গ্রহণ করেছি। যার সুযোগটা দেশের মানুষ পাবে।’ তিনি বলেন, বিশ্বে ১১৯ তম দেশ হিসেবে ই-পাসপোর্ট চালু হয়েছে এবং দক্ষিণ এশিয়ায় প্রথম দেশ হিসেবে আমরা সেটা চালু করতে পেরেছি এবং আমরা সেই জায়গায় পৌঁছাতে পেরেছি। ফরেন রেমিট্যান্স দেশের উন্নয়নে কাজে লাগায় সেই প্রবাসীদের দেশ-বিদেশে যাতায়াত সহজীকরণের লক্ষ্যে তাঁর সরকারের এই উদ্যোগ একথা উল্লেখ করে সরকার প্রধান বলেন, ‘দেশের অভ্যন্তরে ৬৪টি জেলায় ৬৯টি পাসপোর্ট অফিস, ৩৩টি ইমিগ্রেশন চেকপোস্ট, বিদেশে অবস্থিত ৭৫টি বাংলাদেশ মিশনের পাসপোর্ট ও ভিসা উইং-এর মাধ্যমে পাসপোর্ট, ভিসা ও ইমিগ্রেশন সেবাকে আমরা মানুষের দোরগোড়ায় পৌঁছে দিচ্ছি।’ তিনি বলেন,উন্নত বিশ্বের সঙ্গে তাল মিলিয়ে আমরাও পাসপোর্ট ও ইমিগ্রেশন সেবাকে যুগোপযোপী করতে ই-পাসপোর্ট প্রদান করতে যাচ্ছি। যাতে প্রবাসী বাংলাদেশীরা আর হয়রানির শিকার না হন। প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘ই-পাসপোর্টের সঙ্গে ই- গেটও সংযোজিত হচ্ছে। ই-পাসপোর্ট ও ই-গেট সংযোজিত হলে ইমিগ্রেশন ও পাসপোর্ট সেবা সহজ, স্বাচ্ছন্দ্যময় ও আন্তর্জাতিক মানসম্পন্ন হবে।’ জনসেবাকে ত্বরান্বিত করতে তাঁর সরকার পাসপোর্ট অধিদপ্তরের অবকাঠামো উন্নয়ন ও জনবল বৃদ্ধিসহ যুগের সংগে তাল মেলাতে এর আধুনিকায়নে সব ধরনের প্রচেষ্টা অব্যাহত রেখেছে বলেও তিনি উল্লেখ করেন। তিনি বলেন,জনগণের ভোটে সরকার গঠন করতে পেরে উন্নয়নের ধারাবাহিকতা বজায় রাখাতেই তাঁর সরকার দেশের উন্নয়ন করতে পেরেছে এবং ২০২০ সালে রাষ্ট্রীয়ভাবে জাতির পিতার জন্ম শতবার্ষিকী এবং ২০২১ সালে স্বাধীনতার সুবর্ণ জয়ন্তী উদযাপনের সুযোগ পেয়েছে। যার ক্ষণ গণনা শুরু হয়ে গেছে। প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘বাংলাদেশের জণগণের প্রতি কৃতজ্ঞতা জানাই যে, তাঁরা আমাদের ওপর আস্থা রেখেছেন, বিশ্বাস রেখেছেন, ভোট দিয়ে নির্বাচিত করে তাঁদের সেবা করার সুযোগ দিয়েছেন।’ তিনি বলেন, জাতির পিতা যুদ্ধবিধ্ব¯Í সদ্য স্বাধীন দেশকে পুনর্গঠনে বহুমুখী পদক্ষেপ গ্রহণকালে ১৯৭৩ সালে তিনি পূর্নাঙ্গ ইমিগ্রেশন ও পাসপোর্ট অধিদপ্তর প্রতিষ্ঠা করেন। কিন্তু ১৯৭৫ সালের ১৫ আগস্ট জাতির পিতাকে সপরিবারে হত্যার পর জাতির ভাগ্যাকাশে ঘোর অন্ধকার নেমে আসে এবং দেশের উন্নয়ন ও অগ্রগতি থেমে গিয়ে হত্যা ক্যু আর ষড়যন্ত্রের রাজনীতি শুরু হয়, বলেন তিনি। তাঁর সরকার প্রতিশ্র“ত ‘ডিজিটাল বাংলাদেশ প্রতিষ্ঠা করতে পারায় বর্তমানে জনগণের জীবনমানের উন্নয়ন ঘটেছে,’ উল্লেখ করে তিনি বলেন, ‘আমাদের প্রবৃদ্ধি ৮ দশমিক ১৫ ভাগে উন্নীত হয়েছে এবং মাথাপিছু আয় বেড়েছে।’ দারিদ্র্যের হার ২০ দশমিক ৫ ভাগে নামিয়ে আনা সম্ভব হয়েছে এবং একে আরো কমিয়ে এনে দেশকে দারিদ্র্যমুক্ত করার লক্ষ্য বা¯Íবায়নেই তাঁর সরকারের সকল কর্মসূচি আবর্তিত হচ্ছে বলেও প্রধানমন্ত্রী উল্লেখ করেন। শেখ হাসিনা বলেন, সকল উন্নয়ন কাজের সময় আমরা একটা বিষয় মাথায় রাখি, এর সুফল যেন একেবারে গ্রামের তৃণমূল পর্যন্ত পৌঁছায়। তিনি সরকারের এসডিজি বা¯Íবায়নের পদক্ষেপ তুলে ধরে বলেন, ‘জাতিসংঘ ঘোষিত টেকসই লক্ষ্যমাত্রা (এসডিজি) অর্জনের জন্য আমাদের সপ্তম পঞ্চবার্ষিক পরিকল্পনায় ইতোমধ্যে বাংলাদেশের জন্য যা যা প্রযোজ্য সেসব পদক্ষেপ গ্রহণ করে আমরা বা¯Íবায়নেও উদ্যোগ গ্রহণ করেছি। সেইসাথে বাংলাদেশ ভবিষ্যতে কিভাবে এগিয়ে যাবে সে পদক্ষেপও তাঁর সরকার নিয়েছে উল্লেখ করে ২০১০ সাল থেকে ২০২০ সাল পর্যন্ত এবং ২০২১ সাল থেকে ২০৪১ সাল পর্যন্ত গৃহীত প্রেক্ষিত পরিকল্পনার পাশাপাশি জলবায়ু পরিবর্তনের বিরূপ প্রভাব মোকাবেলায় শতবর্ষ মেয়াদি ডেল্টা পরিকল্পনা গ্রহণ এবং বা¯Íবায়নের উদ্যোগ ও তুলে ধরেন তিনি। ‘যুগের সাথে তাল মিলিয়ে এইসব পরিকল্পনা যুগোপযোগীকরণ করতে হবে’ উল্লেখ করে শেখ হাসিনা বলেন, ‘একটি লক্ষ্য স্থির করে দেশকে এগিয়ে নেয়ার জন্যই পরিকল্পনা মাফিক তাঁর সরকার এগিয়ে যাচ্ছে।’

তৃতীয় রাউন্ডে ফেদেরার-জোকোভিচ

ক্রীড়া প্রতিবেদক \ সহজ জয়ে অস্ট্রেলিয়ান ওপেনের তৃতীয় রাউন্ডে উঠেছেন বর্তমান চ্যাম্পিয়ন নোভাক জোকোভিচ ও রেকর্ড ২০টি গ্র্যান্ড ¯¬্যাম জয়ী রজার ফেদেরার। মেলবোর্ন পার্কে বুধবার জাপানের অবাছাই তাতসুমা ইতোকে ৬-১, ৬-৪, ৬-২ গেমে হারান ১৬টি গ্র্যান্ড ¯¬্যাম জয়ী জোকোভিচ। প্রতিযোগিতার রেকর্ড সাতবারের চ্যাম্পিয়ন এই সার্বিয়ান তারকা শেষ বত্রিশে লড়বেন আরেক জাপানি প্রতিপক্ষ ইয়োশিহিতো নিশিওকার বিপক্ষে। আরেক ম্যাচে সার্বিয়ার ফিলিপ ক্রাইনোভিচকে ৬-১, ৬-৪, ৬-১ গেমে হারান প্রতিযোগিতার ছয় বারের চ্যাম্পিয়ন ফেদেরার। পরের রাউন্ডে ৩৮ বছর বয়সীর প্রতিপক্ষ অস্ট্রেলিয়ার জন মিলম্যান। প্রতিপক্ষ চোটের কারণে সরে দাঁড়ানোয় কোর্টে না নেমেই তৃতীয় রাউন্ডের টিকেট পেয়েছেন গ্রিসের ষষ্ঠ বাছাই ¯েÍফানোস সিৎসিপাস। চতুর্থ রাউন্ডে ওঠার লক্ষ্যে কানাডার মিলোস রাওনিচের মুখোমুখি হবেন ২০১৯ সালের এটিপি ফাইনালস জয়ী সিৎসিপাস।

ঢাকায় ব্রাজিলের সাবেক তারকা গোলরক্ষক জুলিও সিজার

ক্রীড়া প্রতিবেদক \ বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জন্ম শতবার্ষিকী উপলক্ষ্যে বাংলাদেশ ফুটবল ফেডারেশনের আমন্ত্রণে সাড়া দিয়ে ঢাকায় এসেছেন ব্রাজিলের সাবেক তারকা গোলরক্ষক জুলিও সিজার। গতকাল বুধবার বিকেল ৫টায় ঢাকায় পা রাখেন ব্রাজিলের হয়ে দুটি ফিফা কনফেডারেশন্স কাপ ও একটি কোপা আমেরিকা জেতা সিজার। প্রথমবারের মতো বাংলাদেশে এসে বেশ ভালো লাগছে বলে জানান ক্লাব ক্যারিয়ারে ফ্লামেঙ্গো, ইন্টার মিলান ও বেনফিকার গোলপোস্ট আগলানো এই গোলরক্ষক। “এই প্রথম বাংলাদেশে এলাম। এখানকার ফুটবল সম্পর্কে আমি বেশি কিছু জানি না। তবে এখানে এসেছি…এখানকার ফুটবল সম্পর্কে কিছু জানার চেষ্টা করব। এখানে আসতে পেরে আমি আসলেই খুশি। ফিফা, বাংলাদেশ ফুটবল ফেডারেশনকে ধন্যবাদ আমাদের আমন্ত্রণ জানানোর জন্য।” বাংলাদেশের অনেক সমর্থকই ব্রাজিলিয়ান ফুটবলের ভক্ত শুনে খুশি ক্লাব ক্যারিয়ারে চ্যাম্পিয়ন্স লিগ শিরোপা, প্রিমেরা লিগের ট্রফি, ক্লাব ওয়ার্ল্ড কাপসহ অসংখ্য শিরোপা জেতা সিজার। “ব্রাজিল ফুটবলের অন্যতম পরাশক্তি। আমাদের অনেক আইডল আছে, যেমন, রোনালদিনিয়ো, নেইমার, কাকাৃ.বিশ্বের অনেক মানুষ যে আমাদের সমর্থন করবে এটা স্বাভাবিক।” আজ সাড়ে ১১টায় ধানমন্ডি ৩২ নম্বরে বঙ্গবন্ধু জাদুঘর পরিদর্শন, বঙ্গবন্ধুর প্রতিকৃতিতে পুষ্প¯Íবক অর্পণ করবেন সিজার। বিকেলে বঙ্গবন্ধু স্টেডিয়ামে বাংলাদেশ-বুরুন্ডির সেমি-ফাইনালও দেখবেন বলে বাফুফে এক বিজ্ঞপ্তিতে জানিয়েছে। ব্রাজিলের হয়ে ৮৭ ম্যাচ খেলা সিজারের সবচেয়ে তিক্ত অভিজ্ঞতা হয় ২০১৪ বিশ্বকাপের সেমি-ফাইনালে। বেলো হরিজন্তের সেই ম্যাচে জার্মানির বিপক্ষে ৭-১ গোলে উড়ে গিয়েছিল ব্রাজিল।

বাংলাদেশের নতুন বোলিং কোচ গিবসন

ক্রীড়া প্রতিবেদক \ ওটিস গিবসনকেই জাতীয় দলের নতুন বোলিং কোচ হিসেবে নিয়োগ দিয়েছে বিসিবি। দুই বছরের চুক্তিতে বাংলাদেশের বোলারদের দায়িত্ব নিচ্ছেন গিবসন। সাবেক ক্যারিবিয়ান ফাস্ট বোলারের দায়িত্ব শুরু হয়ে যাচ্ছে পাকি¯Íান সফর দিয়ে। দলের সঙ্গে লাহোরে যোগ দেবেন তিনি। সদ্য সমাপ্ত বিপিএলে কুমিল্লা ওয়ারিয়র্সের প্রধান কোচ ছিলেন গিবসন। বিপিএল চলার সময়ই তার সঙ্গে আলোচনা করে বিসিবি। গিবসনও তখন ওই দফায় বলেন, দায়িত্বটি নিতে তিনি খুবই আগ্রহী। বিপিএলে সিলেট থান্ডারের বোলিং কোচ হিসেবে কাজ করা সাবেক দক্ষিণ আফ্রিকান পেসার ন্যান্টি হেওয়ার্ডও আগ্রহী ছিলেন দায়িত্বটি পেতে। তবে শেষ পর্যন্ত গিবসনের অভিজ্ঞতায় ভরসা রাখল বিসিবি। খেলোয়াড়ী জীবনে ওয়েস্ট ইন্ডিজের হয়ে দুটি টেস্ট ও ১৫টি ওয়ানডে খেলেছেন গিবসন। প্রথম শ্রেণির ক্রিকেটে অবশ্য ক্যারিয়ার ছিল দারুণ সমৃদ্ধ। ইংলিশ কাউন্টিতে খেলেছেন দাপটে। তবে কোচ হিসেবে সাফল্যে ছাপিয়ে গেছেন খেলোয়াড়ী জীবনকে। ২০০৭ ইংল্যান্ডের বোলিং কোচের দায়িত্ব পেয়ে দারুণ সফল হয়েছিলেন। পরে ওয়েস্ট ইন্ডিজের ছিলেন প্রধান কোচ। তার কোচিংয়ে ২০১২ টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপ জিতেছিল ক্যারিবিয়ানরা। পরে আরও দুই দফায় ছিলেন ইংল্যান্ডের বোলিং কোচ। সবশেষ বিপিএলের আগে ছিলেন দক্ষিণ আফ্রিকার প্রধান কোচ। বিসিবির প্রধান নির্বাহী নিজাম উদ্দিন চৌধুরির বিশ্বাস, বাংলাদেশের দায়িত্বেও সফল হবেন গিবসন। “গিবসন খুবই অভিজ্ঞ, ক্রিকেট বিশ্ব জুড়ে খেলা ও কোচিং করানোর অভিজ্ঞতা আছে তার। বাংলাদেশের ক্রিকেটকেও স¤প্রতি দেখেছেন খুব কাছ থেকে। আমি নিশ্চিত, বাংলাদেশের কোচিং গ্রুপে তার অন্তর্ভুক্তি হবে মহামূল্য।” বাংলাদেশের আগের বোলিং কোচ শার্ল ল্যাঙ্গাভেল্ট নিজ দেশ দক্ষিণ আফ্রিকার দায়িত্ব নিয়ে দেশে ফেরার পর থেকেই বোলিং কোচ খুঁজছিল বিসিবি।

এফডিসিতে নতুন নায়কের সঙ্গে শ্রাবন্তীর ‘বিক্ষোভ’

বিনোদন বাজার \ নতুন চলচ্চিত্র ‘বিক্ষোভ’ ছবির শুটিং শুরু হয়েছে গত রোববার। নবাগত নায়ক শান্ত খানের সঙ্গে শুটিংয়ে অংশ নিয়েছেন কলকাতার জনপ্রিয় অভিনেত্রী শ্রাবন্তী।

দ্বিতীয় লটের শুটিংয়ে এফডিসির প্রশাসনিক ভবনের সামনে শিক্ষার্থীদের আন্দোলনের একটি দৃশ্য ধারণ করা হয়।

শুটিংয়ের সময় দেখা যায়, শত শত শিক্ষার্থী জড়ো হয়ে বসে আছেন। অনেকের হাতে প্লাকার্ড। তাতে লেখা ‘জামশেদ হত্যার বিচার চাই’!।

এরপর হুট করে ¯েøাগান দিয়ে উঠল তারা। ¯েøাগানে ¯েøাগানে ভারি করে তুলল এফডিসি। ¯েøাগানের ভাষা ‘উই ওয়ান্ট জাস্টিস’!

শিক্ষার্থীদের পাশে ছিল স্টেশনারি দোকান, এরপর মূল সড়ক। আন্দোলন-অবরোধে রা¯Íায় লেগেছে লম্বা জ্যাম। রিকশা, মাইক্রো, প্রাইভেটকার থমকে আছে। হঠাৎ করেই সেখানে আসেন কলকাতার জনপ্রিয় অভিনেত্রী শ্রাবন্তী। মাথায় পতাকা বেঁধে, স্কুল ড্রেসে তার সঙ্গে এলেন শান্ত খান।

নিরাপদ সড়কের দাবিতে ছাত্র আন্দোলনের ঘটনাকে উপজীব্য করেই নির্মিত হচ্ছে ‘বিক্ষোভ’।

‘বিক্ষোভ’ ছবিটি নির্মাণ করছেন শামীম আহমেদ রনি। ছবির কেন্দ্রীয় চরিত্রে অভিনয় করছেন নবাগত শান্ত খান। তার সঙ্গে অভিনয় করছেন কলকাতার নায়িকা শ্রাবন্তী।

জানা গেছে, গত বছরের সেপ্টেম্বর মাসের ৯ থেকে ১১ তারিখ পর্যন্ত ছবিটির জন্য মুম্বাইয়ে সানি লিওনের আইটেম গানের দৃশ্য ধারণ করা হয়।

একই মাসের তৃতীয় সপ্তাহে বাংলাদেশের গাজীপুরে ‘বিক্ষোভ’ ছবির শুটিং করেন শ্রাবন্তী। শ্রাবন্তী-শান্ত ছাড়াও ছবিতে অভিনয় করছেন বলিউডের রাহুল দেব। এই ছবির মাধ্যমে প্রথমবার বাংলাদেশের ছবিতে পারফর্ম করছেন বলিউড তারকা সানি লিওন। তিনি যে গানে পারফর্ম করছেন, সেটি গেয়েছেন কোনাল।

বিক্ষোভ ছবির শুটিং প্রসঙ্গে সহকারী পরিচালক পূজন বলেন, এবার দ্বিতীয় লটের শুটিং হচ্ছে। অর্ধেকের মতো কাজ শেষ। ২১ জানুয়ারি রাতে শ্রাবন্তী কলকাতা ফিরে যাবেন। আবার আসবেন ২ ফেব্রæয়ারি। তখন টানা এক সপ্তাহ শুটিং করবেন। তারপর পুরো ছবির কাজ শেষ হবে। আগামী রোজার ঈদে ছবিটি দেশব্যাপী মুক্তি পাবে বলে জানান তিনি।

৩১ জানুয়ারি বাংলাদেশে ‘রবিবার’

বিনোদন বাজার \ প্রথমবার একসঙ্গে বড়পর্দায় অভিনয় করলেন জয়া আহসান ও প্রসেনজিৎ চট্টোপাধ্যায়। জয়া ও প্রসেনজিৎ অভিনীত এবং অতনু ঘোষ পরিচালিত রবিবার সিনেমাটি মুক্তি পায় গত ২৭ ডিসেম্বর। আমদানি নীতিমালা অনুসারে একই দিনে বাংলাদেশেও মুক্তি পাওয়ার কথা শোনা গিয়েছিল। অ্যাকশন কাট এন্টারটেইনমেন্ট সিনেমাটি বাংলাদেশে মুক্তির জন্য বাংলাদেশ সরকারের অনুমোদন নিতে আবেদনও করে রেখেছিল। কিন্তু অনুমোদন পেতে দেরি হওয়ায় মুক্তি দেয়া সম্ভব হয়নি। তবে প্রায় এক মাস পরে বাংলাদেশে আসছে রবিবার। আগামী ৩১ জানুয়ারি মুক্তি পাবে সিনেমাটি।

এ বিষয়ে অনন্য মামুন বলেন, ‘বাংলাদেশ ও ভারতে একসঙ্গে সিনেমাটি মুক্তির কথা ছিল। এ জন্য আবেদনও করে রেখেছিলাম। কিন্তু সঠিক সময়ে অনুমোদন না পাওয়ায় তা হয়নি। একসঙ্গে দুই বাংলায় মুক্তি পেলে ভালো হতো। তবে আগামী ৩১ জানুয়ারি মুক্তির দিন ঠিক করেছি।’

প্রসঙ্গত, অনন্য মামুন পরিচালিত ‘আবার বসন্ত’ সিনেমার বিনিময়ে অতনু ঘোষের ‘রবিবার’ সিনেমাটি আমদানি করা হয়েছে

মোদিকে ‘কপি’ করে হাসির খোরাক উর্বশী

বিনোদন বাজার \ ফের খবরের শিরোনামে বলিউড অভিনেত্রী উর্বশী রাউটেলা। তবে এবার ‘কপি-পেস্ট’ করার অভিযোগে হাসির খোরাক হতে হল তাকে। শাবানা আজমির দুর্ঘটনা নিয়ে টুইট করতে গিয়ে নেটিজেনদের ট্রোলের স্বীকার হতে হন উর্বশী।

শনিবার বিকেল ৩টা দিকে দুর্ঘটনায় মাথার পিছনে চোট লাগে শাবানা আজমির। আহত অবস্থায় তার ছবিও শেয়ার হয় সোশ্যাল মিডিয়া থেকে সংবাদমাধ্যমে। দুর্ঘটনার পর গোটা দেশ থেকে তার আরোগ্য কামনা করা হয়। সোশ্যাল মিডিয়ায় একের পর এক পোস্ট হতে থাকে তার জন্য। শনিবারই টুইট করেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদিও। অভিনেত্রীর দ্রæত আরোগ্য কামনা করেন প্রধানমন্ত্রী।

শনিবার প্রধানমন্ত্রী টুইটটি করেন রাত ৮টা দিকে। তার টুইটের সেই বয়ানই হুবহু টুইট করেন অভিনেত্রী উর্বশী রাউটেলা। প্রধানমন্ত্রীর টুইয়ের প্রায় পাঁচ ঘণ্টা পর রাত্রি একটা ১৭ মিনিটে একই বয়ানের পোস্ট দেন উর্বশী। প্রধানমন্ত্রী এবং উর্বশীর টুইটে কমা, দাঁড়িরও পার্থক্য নেই।

বিষয়টি নজরে আসতেই মাঠে নেমে পড়েন নেটিজেনরা। একের পর এক কমেন্ট পড়তে থাকে উর্বশীর পোস্টে। সেখানে ‘কপি-পেস্ট’ করার অভিযোগ কটাক্ষের মুখে পড়তে হয় তাকে।

এক টুইটার ইউজার লিখেছেন, কপি না করে আপনি প্রধানমন্ত্রীর পোস্টটি রিটুইট করতে পারতেন। গোটা বিষয়টি নিয়ে উর্বশী রাউটেলার কোনও বয়ান পাওয়া যায়নি।

ছোটবেলায় শিক্ষকের কাছে যৌন নির্যাতনের শিকার হয়েছিলেন মধুরিমা তুলি

বিনোদন বাজার \ ছোটবেলায় শিক্ষকের কাছে যৌন নির্যাতনের শিকার হয়েছিলেন। যা তাকে মানসিকভাবে পুরোপুরি বিপর্য¯Í করে দিয়েছিল।

স¤প্রতি এমনই এক ভয়াবহ স্মৃতির কথা শোনালেন ভারতীয় অভিনেত্রী মধুরিমা তুলি। এসময় তিনি কান্নায় ভেঙে পড়েন।

বিগ বসের ঘরে এসে কাঁদতে কাঁদতে এই অভিনেত্রী বলেন, ‘যে ব্যক্তি আমার শøীলতাহানি করতেন তিনি আমার গৃহশিক্ষক। তখন আমি খুবই ছোট ছিলাম। এই নয় কি ১০ বছর।’

তিনি বলেন, ‘আমি আর আমার ভাই একইসঙ্গে তার কাছে পড়তাম। সে বহু বার আমায় অশালীনভাবে শরীরের বিভিন্ন জায়গায় ছোঁয়ার চেষ্টা করেন। এ রকম বেশ কয়েক বার চলার পর আমি বাবা-মাকে ঘটনাটি জানাই।’

সে সময় মধুরিমা এতটাই ভয় পেয়ে গিয়েছিলেন যে পড়ায় মন বসাতে পারতেন না। তিনি বলেন, ‘সেই ঘটনার চাপ থেকে নিজেকে মুক্ত করতে ওড়িশা থেকে সপরিবারে দেহরাদূনে চলে আসি।’

স¤প্রতি ‘ছপাক’ সিনেমার জন্য দীপিকা ও যাকে কেন্দ্র করে গল্প, সেই ল²ী আগরওয়াল এসেছিলেন বিগ বসের ঘরে। সেখানেই নিজেদের জীবনের নানা অজানা তথ্য মেলে ধরেছিলেন প্রতিযোগীরা। খবর: আনন্দবাজার

‘জোনাস ব্রাদার্স’র গানে প্রিয়াঙ্কা

বিনোদন বাজার \ স¤প্রতি ইউটিউবে মুক্তি পেয়েছে ‘জোনাস ব্রাদার্স’ ব্যান্ডের নতুন গান ‘হোয়াট অ্যা ম্যান গট্টা ডু’। এই গানটির মিউজিক ভিডিওতে প্রথমবার একসঙ্গে প্রিয়াঙ্কা চোপড়া ও নিক জোনাস। ‘হোয়াট অ্যা ম্যান গট্টা ডু’ অ্যালবামটিতে দর্শকদের জন্য রয়েছে আরো চমক।
মিউজিক অ্যালবামে ‘জোনাস ব্রাদার্স’দের সঙ্গে আছেন জোনাস সিস্টার্সরাও। আর এই জোনাস সিস্টার্সরা হলেন প্রিয়াঙ্কা চোপড়া (নিক জোনাসের স্ত্রী), সোফি টার্নার (জো জোনাসের স্ত্রী) এবং ড্যানিয়েল জোনাস (কেভিন জোনাসের স্ত্রী)। গানের ভিডিওটির দৃশ্যায়নে ‘রিস্কি বিজনেজ’ (১৯৮৩), ‘গ্রেস’ (১৯৭৮) এবং ‘সে অ্যানিথিং’ (১৯৮৯) এই তিনটি হলিউড ছবির দৃশ্য ধার করা হয়েছে।
‘জোনাস ব্রাদার্স’র তরফে জানানো হয় ৭ ও ৮ এর দশকের তাদের পছন্দের ছবিগুলোর আইকনিক দৃশ্যগুলোর প্রতি সম্মান প্রদর্শনের জন্যই এই ভিডিও বানানো হয়েছে। এই ভিডিওর দৃশ্যায়নে প্রিয়াঙ্কা যেন ‘রিস্কি বিজনেজ’ ছবির অভিনেত্রী ‘রেবেকা দে মর্নে’। অন্যদিকে এই গানে নিক জোনাস যেন ‘রিস্কি বিজনেস’র টম ক্রুজ।

মোদির ওপর ক্রুদ্ধ হয়ে বিস্ফোরক মন্তব্য নাসির উদ্দিন শাহর

বিনোদন বাজার \ ভারতে বিতর্কিত নাগরিকত্ব আইন বাতিলের দাবিতে আন্দোলনরত শিক্ষার্থীদের ওপর পুলিশি নির্যাতনের প্রতিবাদ জানিয়েছেন বলিউডের প্রখ্যাত অভিনেতা ও নাট্যব্যক্তিত্ব নাসির উদ্দিন শাহ।

প্রবীণ এ অভিনেতা বলেন, প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি নিজে ছাত্র ছিলেন না বলেই বোধহয় ছাত্রসমাজের প্রতি তার কোনো সহানুভূতি নেই।

সোমবার একটি অনলাইন নিউজ পোর্টালে সাক্ষাৎকারে এমন মন্তব্য করেছেন বলে আনন্দবাজার পত্রিকা জানিয়েছে।

নাসির উদ্দিন শাহ বলেন, ‘জানি না আমার বার্থ সার্টিফিকেট আছে কিনা। এত বছর এ দেশে কাজ করছি। পরিবারের বাকিরা কেউ পুলিশে, কেউ প্রশাসনে, কেউ সেনাবাহিনীতে কাজ করে এসেছে। আজ যদি ভারতীয় নাগরিকের প্রমাণ দিতে হয়, তাতে উদ্বেগ নয়, ক্রোধই জন্মায়। আমি উদ্বিগ্ন নই, আমি ক্রুদ্ধ।’

তিনি বলেন, ‘বর্তমান সরকারের একটি প্রধান বৈশিষ্ট্যই হলো ছাত্রসমাজের প্রতি বিদ্বেষ। তারা নিজেরা কখনও ছাত্র ছিলেন না, বিদ্যাচর্চায় আগ্রহ দেখাননি কখনও এবং তার জন্যই হয়তো এই বিদ্বেষ।’

‘ছাত্ররা হলো সেই গোষ্ঠী, যারা চিন্তা করে দেশের ভবিষ্যৎ নিয়ে। বড় হলে তাদের জন্য কী ভবিষ্যৎ অপেক্ষা করছে, এটি তাদের ভাবতে হয়। প্রধানমন্ত্রী সেই গোষ্ঠীর অংশ ছিলেন না, তাই তাদের প্রতি তার সহানুভূতিও নেই। রাষ্ট্রবিজ্ঞানের ডিগ্রির কথা সামনে আসার আগে উনি নিজে কিন্তু বলতেনÑ আমি পড়াশোনাই করিনি।’

স¤প্রতি নাগরিকত্ব আইনকে ঘিরে দেশজুড়ে যে স্বতঃস্ফূর্ত প্রতিবাদের ঢল নেমেছে, সেটি খুবই আশাব্যঞ্জক বলে মনে করছেন নাসির উদ্দিন।

শাবানার শারীরিক অবস্থার উন্নতি

বিনোদন বাজার \ সড়ক দুর্ঘটনায় গুরুতর আহত অভিনেত্রী শাবানা আজমির শারীরিক অবস্থা অনেকটাই স্থিতিশীল। তবে এখনো আইসিইউতেই রাখা হয়েছে তাকে। চিকিৎসকরা জানিয়েছেন, ভয়ের কোনও কারণ নেই। তার সম¯Í রিপোর্ট পজেটিভ বলে জানান অভিনেত্রীর স্বামী গীতিকার জাভেদ আখতার।

ভারতীয় একাধিক গণমাধ্যমকে প্রযোজক বনি কাপুর জানান, শাবানা এখন ঠিক আছেন। অসুস্থতা অনেকটাই কাটিয়ে উঠেছেন অভিনেত্রী। স্বাভাবিকভাবেই কথা বলছেন, সবাইকে চিনতেও পারছেন। শরীরের ভিতরে আর কোনও ক্ষত নেই তার। তাই আশঙ্কারও কোনও কারণ নেই। তবে এখনও তাকে পর্যবেক্ষণে রেখেছেন চিকিৎসকরা। একই কথা বলেছেন অভিনেতা সতীশ কৌশিকও।

এদিকে শাবানা আজমির গাড়িচালক কমলেশ কামাথকে শমন পাঠিয়েছে পুলিশ। এক্সপ্রেসওয়েতে বেপরোয়া গতিতে গাড়ি চালানোর অভিযোগে রবিবারই এফআইআর দায়ের হয়েছিল শাবানা আজমির চালকের বিরুদ্ধে।

কোলাপুর থানা সূত্রে জানা গেছে, থানায় অভিযোগ দায়ের করেন ক্ষতিগ্র¯Í ট্রাকটির চালক রাজেশ শিন্ডে। এফআইআরের কপিতে উল্লেখ ছিল, অন্য একটি গাড়িকে ওভারটেক করতে গিয়েই ঘটে দুর্ঘটনা। বেপরোয়া গতির জন্য পুণে-মুম্বাই এক্সপ্রেসওয়েতে একটি চলন্ত ট্রাককে ধাক্কা দিয়েছে শাবানা আজমির গাড়ি। তদন্তে নেমে গাড়ি চালককে জিজ্ঞাসাবাদ করতে চায় পুলিশ। তবে দুর্ঘটনায় তিনিও জখম হওয়ায় তা করা সম্ভব হয়নি বলে জানিয়েছে পুলিশ। কিন্তু রবিবার চালকের বিরুদ্ধে এফআইআর দায়ের হওয়ায় সোমবার কামাথকে তলব করা হয়েছে।