কুষ্টিয়ায় চেয়ারম্যান আতাউর রহমান আতা’র পিঠা উতসব ও মনোজ্ঞ সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান

সুজন কর্মকার ॥ কুষ্টিয়া সদর উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান ও শহর আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক আতাউর রহমান আতা’র আয়োজনে, পিঠা উৎসব ও মনোজ্ঞ সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান পরিবেশিত হয়েছে। “শীতের এই সন্ধ্যায় কলাইয়ের রুটি খাবো-গান শুনবো, আমরা সবাই মাদককে না বলবো” এই শ্লোগানকে সামনে রেখে এ আয়োজন করা হয়। গতকাল ১২ জানুয়ারি ২০২০ তারিখ রবিবার সন্ধ্যায় কুষ্টিয়া শহরের টিপিআই রোডস্থ আওয়ামী লীগের যুগ্ম-সাধারণ সম্পাদক ও কুষ্টিয়া-৩ (সদর) আসনের সংসদ সদস্য মাহবুবউল আলম হানিফ এমপি’র বাস ভবনের সামনে এ আয়োজন করা হয়। সদর উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান ও শহর আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক আতাউর রহমান আতা বলেন, মাদকের ব্যাপারে জিরো টলারেন্স ঘোষণা করেছেন মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। যারা মাদক সেবন করে তাদের মেধা বিলুপ্ত হয়। মাদকের ক্ষতিকর দিকগুলো সবাইকে জানাতে হবে। সচেতনতা বাড়াতে হবে। আসুন আমরা ঘুরে দাঁড়াই মাদকের বিরুদ্ধে। এদিকে রাত ১০ টা পর্যন্ত চলে এ কলাইয়ের রুটি ও পিঠা খাওয়া এবং মনোজ্ঞ (২ পৃষ্ঠা ঃ ১ কলামে)
কুষ্টিয়ায় চেয়ারম্যান আতাউর
(১ম পৃঃ পর)সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান। সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানে সংগীত পরিবেশন করেন দৌলতপুরের অভিরাম লালন শিশু আশ্রম স্বেচ্ছাসেবী সংগঠনের বাউল ফরিদউল ইসলাম’র শাহেদ, স্বাধীন বাংলা, মারুফ খান, মিম, সুবর্ণাসহ অন্যান্য শিল্পীবৃন্দ। অপরদিকে কুষ্টিয়ার হিডেন ব্যান্ড এর পরিবেশনায় মনোজ্ঞ সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান পরিবেশিত হয়। এ সময় সংগীত পরিবেশন করেন শিল্পী হাসিব কোরাইশী, খাইরুল, মিজান, জুয়েল, দৃষ্টি, মৌসুমী সহ শিল্পীবৃন্দ। এ ছাড়াও বিভিন্ন শিল্পীবৃন্দ সংগীত ও কৌতুক পরিবেশন করেন। অনুষ্ঠানের ব্যবস্থাপনায় ছিলেন দৌলতপুর উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক এ্যাডঃ শরীফ উদ্দিন আহমেদ রিমন। এ সময় সদর উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক রেজাউল হক, কুষ্টিয়া প্রেসক্লাবের সাধারণ সম্পাদক আনিসুজ্জামান ডাবলু সহ আওয়ামী লীগের বিভিন্ন পর্যায়ের নেতৃবৃন্দ, সাংবাদিকবৃন্দ, শহরের প্রতিটি ওয়ার্ড আওয়ামী লীগের নেতৃবৃন্দ ও অঙ্গ সহযোগি সংগঠনের শত শত নেতৃবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন।

মুক্তির প্রথমদিনেই বক্স অফিস কাঁপাচ্ছে অজয়-কাজলের ‘তানহাজি’

বিনোদন বাজার ॥ অনেকটা কঠিন উত্তপ্ত মুহূর্তের মধ্যেই ভারতে গত শুক্রবার মুক্তি পেলো অজয় দেবগণ-কাজল ও সাইফ আলী খান অভিনীত ছবি ‘তানহাজি।’ মুক্তির প্রথমদিনেই বক্স অফিস এর সংগ্রহ ১৫.১০ কোটি টাকা। যদিও একইদিনে অজয়-কাজলের ‘তানহাজি’ ছবি মুক্তি ছাড়াও দীপিকা পাডুকোনের ‘ছপাক’ চলচ্চিত্রটিও মুক্তি পায়।

সাম্প্রতিক দিল্লির জওহরলাল নেহরু বিশ্ববিদ্যালয়ে দীপিকার আলোচিত কর্মকা-ে ইতিমধ্যে ভারতীয়রা দীপিকার ‘ছপাক’ চলচ্চিত্রটি বর্জনের ঘোষণা দিয়েছে। বর্জন করা হলেও মুক্তির প্রথম দিনে ‘ছপাক’ বক্স অফিসে আয় করেছে ৪.৭৭ কোটি টাকা।

অন্যদিকে, দীর্ঘদিন পর অজয় দেবগণ ও কাজলকে একসঙ্গে বড় কোনো পর্দায় দেখা গেলো। ‘তানহাজি’ চলচ্চিত্রে তাদের দুইজনকেই চুটিয়ে অভিনয় করতে দেখা গেছে। এরই মধ্যে দিনের শুরুতে বক্স অফিস কাঁপাতে শুরু করেছে তাদের অভিনীত এই ছবি। যদিও ছবিটি মুক্তির আগে থেকেই এই সিনেমাকে নিয়ে চলছিল বহু আলোচনা-সমালোচনার ঝড়। অথচ এরপরেও অজয়-কাজল বলেছিলেন, তাদের অভিনীত এই সিনেমা অবশ্যই বক্স অফিসে ঝড় তুলবে। তাদের কথা ঠিক প্রমাণ হলো।

উল্লেখ্য, ছবিতে কাজলের সঙ্গে অজয় দেবগণকে এই সিনেমায় প্রধান চরিত্রে অভিনয় করেছেন। ছবিতে অজয় দেবগণকে ছত্রপতি শিবাজীর সেনাপতি সুবেদার তানহাজি মালুসারে চরিত্রে দেখা গেছে। ছবিতে অজয় দেবগণ ও কাজল ছাড়াও অভিনয় করেছেন সাইফ আলী খান, পঙ্কজ ত্রিপাঠী ও শারদ কেলকার।

আমার মধ্যে শ্রদ্ধাবোধও যথেষ্ট রয়েছে: কঙ্গনা

বিনোদন বাজার ॥ কাবাডি খেলোয়াড়ের চরিত্রে কঙ্গনা রানাওয়াতকে দেখা যাবে তার পরবর্তী সিনেমা ‘পাঙ্গা’তে। কঙ্গনা কয়েকবার দেখেই রপ্ত করে নিয়েছিলেন কাবাডির ডজিং টেকনিক। প্রতিদিন সকাল ৮টা থেকে ট্রেনিং শুরু করে টানা দু-ঘণ্টা চলতো। একদিনও কোনো ট্রেনিং সেশন মিস করেননি কঙ্গনা। দিল্লি, কলকাতা, মুম্বাইয়ে শুটিং হয়েছে।

আবহাওয়া যাই হোক না কেন, কঙ্গনার ডেডিকেশনে কোনো কমতি পড়েনি। কাবাডিতে পায়ের কাজ খুবই গুরুত্বপূর্ণ। তাই ওয়ার্কআউটে প্রতিদিন স্কোয়াট এবং লাঞ্জেস করানো হতো কঙ্গনাকে।

এদিকে সম্প্রতি কঙ্গনা এক আলোচনা সভায় যোগ দেন। সেখানে তার মন্তব্য বেশ আলোচনা তৈরি করেছে।

সেখানেই অকপটে কঙ্গনা জানান, তার সহজাত স্বভাবই হলো যেকোনো অথরিটিকে চ্যালেঞ্জ করা। তিনি বলেন, ‘জীবনে কখনো কোনোদিন ক্ষমতাবান মানুষ অথবা অথরিটির ভয় আমি পাইনি। আমার সহজাত স্বভাবই হলো যেকোনো অথরিটিকে চ্যালেঞ্জ করা। আর এটাই তো হওয়া স্বাভাবিক। অথরিটি আপনার থেকে আত্মসমর্পণ দাবি করে। তো সেই কাজ করার আগে প্রশ্ন করবো না? জানতে চাইবো না আদৌ এই দাবি ন্যায্য কি-না! সত্যি বলতে কী আমি নিজে একদিকে যেমন ডমিনেটিং তেমনই আমার মধ্যে শ্রদ্ধাবোধও রয়েছে। আমি আসলে জীবনে অনেক প্রতিবন্ধকতার মধ্য দিয়ে এসেছি। তাই সত্য কথাগুলো আমি মুখের ওপর বলতে পছন্দ করি। এর মানে এই না যে আমি অসম্মান করি।’

দীপিকা দেশটাকে ভেঙে টুকরো করতে চাইছেন: স্মৃতি ইরানি

বিনোদন বাজার ॥ বলিউডের জনপ্রিয় তারকা দীপিকা পাড়ুকোন ভারতকে ভেঙে টুকরো করে ফেলতে চাইছে বলে মন্তব্য করেছেন কেন্দ্রীয় মন্ত্রী স্মৃতি ইরানি।

বৃহস্পতিবার চেন্নাইয়ে এক অনুষ্ঠানে এমন মন্তব্য করেন তিনি।

জওহরলাল নেহেরু বিশ্ববিদ্যালয়ে রাতের অন্ধকারে মুখোশ পড়ে হামলার প্রতিবাদ জানানোয় দীপিকার এমন সমালোচনা করেছেন বিজেপির এই মন্ত্রী। স্মৃতি ইরানি বলেন, দীপিকা কোন রাজনৈতিক দলের সমর্থক তা আগেই বোঝা গিয়েছিল।

সম্প্রতি দীপিকার ভাইরাল হওয়া ২০১১ সালের একটি সাক্ষাৎকারের ভিডিওর প্রসঙ্গ টেনে স্মৃতি বলেন, দীপিকা কংগ্রেসের হয়ে দালালি করছে। ওই ভিডিওতে রাহুল গান্ধীকে প্রধানমন্ত্রী দেখার আগ্রহের কথা বলেছিলেন দীপিকা।

তিনি বলেন, আমার মনে হয় যারা এই খবরটি পড়বেন তারাই বুঝতে পারবেন যে আপনি কাদের পাশে দাঁড়াতে চলেছেন। দীপিকা তাদের পাশে দাঁড়িয়েছেন যারা এই দেশটাকেই ভেঙে টুকরো টুকরো করে ফেলতে চাইছে।

প্রসঙ্গত, গত রোববার দিল্লির জওহরলাল নেহেরু বিশ্ববিদ্যাল ক্যাম্পাসে হামলা চালায় একদল দুষ্কৃতিকারী। হামলায় আহত হন ঐশী ঘোষসহ অন্তত ৪২ ছাত্র-শিক্ষক।

আর এই ঘটনার পরই বলিউড তারকাদের একাংশ এই শিক্ষার্থীদের পাশে দাঁড়ান। শিক্ষার্থীদের পাশে দাঁড়াতে ক্যাম্পাসে যান দীপিকা পাড়ুকোন। আর এরপরই একাংশের ক্ষোভের মুখে পড়েন তিনি।

নেটিজেনদের একাংশ দীপিকার’ছবি ‘ছপক’ বয়কটের ডাক দেয়। আবার বিজেপি নেতাদেরও একাংশের রোষের মুখে পড়েন দীপিকা।

সূত্র : এনডিটিভি।

শখ-নোবেলের ‘বি পজিটিভ’

বিনোদন বাজার ॥ জনপ্রিয় দুই তারকা নোবেল ও শখকে নিয়ে শুরু হয়েছে নাটক ‘বি পজিটিভ’। এতে মেয়ের ভূমিকায় অভিনয় করেছে অয়ন্যা।

গত শুক্রবার ঢাকার বিভিন্ন জায়গায় নাটকটির শুটিং শুরু হয়েছে।

ইতিবাচক গল্পের নাটক ‘বি পজেটিভ’। সেখানে শখ ও নোবেলের সংসারের গল্পের অন্তরালে রয়েছে সমাজের নানা বাস্তব অসংগতির ছবি। নাটকে নোবেল একজন নিষ্ঠাবান চাকরিজীবী।

গত বছর নোবেল ও শখ অভিনয় করেছিলেন ‘অহংকার’ নামের এক নাটকে। আরটিভিতে হয় ঈদুল আজহায় প্রচারিত হয় নাটকটি।

আবারও একই জুটি কাজ করলেন ‘বি পজেটিভ’ নামের নাটকে।

নোবেল বলেন, নাটকের গল্পের সঙ্গে বাস্তবতার চরম মিল রয়েছে। শখের সঙ্গে আগেও বিজ্ঞাপন ও কিছু নাটকে কাজ করেছি। সে ভালো কাজ করে। নাটকের গল্পটি লিখেছেন সাব্বির চৌধুরী, প্রযোজকও তিনি। পরিচালনা করছেন রূপক বিন রউফ। আগামী ঈদুল ফিতরে আরটিভিতে দেখা যাবে নাটকটি।

নতুন ছবির ঘোষণা দিলেন সালমান

বিনোদন বাজার ॥ চলতি বছরে ঈদের ছবির ঘোষণা দিলেন বলিউডের জনপ্রিয় তারকা সালমান খান। ‘ভাইজানের’ ঈদের ছবির রিলিজের ঘোষণার অপেক্ষায় থাকেন সালমান-ভক্তরা।

২০২১ সালের ঈদে নিজের ছবির কথা শুক্রবার ঘোষণা করলেন সালমান। ‘কাভি ঈদ কাভি দিওয়ালি’ নামে সেই ছবির কথা সোশ্যাল মিডিয়ায় শেয়ার করেছেন সালমান। গল্প সাজিদ নাদিয়াদওয়ালার, প্রযোজনাও করবেন তিনিই। ‘হাউসফুল ফোর’খ্যাত ফারহাদ শামজির পরিচালনায় এই ছবি ফ্লোরে যাবে এ বছরের শেষের দিকে। নায়িকার খোঁজ চলছে এখনও।

এ বছর ঈদে মুক্তি পাচ্ছে প্রভু দেবার পরিচালনায় সালমানের ‘রাধে’। যার শুটিং শুরু হয়েছে ইতিমধ্যে।

বলিউডের সুপারস্টারদের মধ্যে একমাত্র অক্ষয় কুমারেরই ছবি বছরজুড়ে রিলিজ হতে থাকে। তৈরি থাকে পরের বছরের ছবির তালিকাও। সেই লিস্টে কি এবার নাম লেখালেন সালমান।

সালমান একজন ভারতীয় চলচ্চিত্র অভিনেতা, প্রযোজক এবং টেলিভিশন ব্যক্তিত্ব। তিনি মাঝে মাঝে গানও গেয়ে থাকেন।

৩০ বছরের অধিক সময়ের কর্মজীবনে তিনি অসংখ্য পুরস্কার অর্জন করেছেন। এর মধ্যে চলচ্চিত্র প্রযোজক হিসেবে দুটি জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার ও অভিনয়ের জন্য দুটি ফিল্মফেয়ার পুরস্কার পেয়েছেন।

বলিউডের সবচেয়ে বড় তারকা সালমান খানকে বিশ্ব ও ভারতীয় চলচ্চিত্রের অন্যতম ব্যবসাসফল অভিনয়শিল্পী বলে আখ্যায়িত করা হয়।

পরিচালক অরিন্দমের রুম থেকে বেরিয়ে অঝোরে কাঁদলেন নায়িকা রূপাঞ্জনা!

বিনোদন বাজার ॥ ভারতের বাংলা ছবির জনপ্রিয় পরিচালক অরিন্দম শীলের বিরুদ্ধে ‘মি-টু’র অভিযোগ তুলেছেন টালিউড অভিনেত্রী রূপাঞ্জনা মিত্র।

তার অভিযোগ, ইস্টার্ন বাইপাসের কাছে অরিন্দমের অফিসে স্ক্রিপ্ট পড়ে শোনানোর কথা বলে তার সঙ্গে অশালীন ব্যবহার করেছিলেন পরিচালক।

শুধু তাই নয়, ঘনিষ্ঠ আলিঙ্গনের মাধ্যমে তাকে কদর্য ইঙ্গিতও করেছিলেন অরিন্দম। পরে সেখান থেকে বেরিয়ে অঝোরে কাঁদেন অভিনেত্রী। খবর আনন্দবাজার।

রূপাঞ্জনা সাংবাদিকদের বলেছেন, ‘সেই পরিচালক প্রযোজিত ভূমিকন্যাতে কাজ করেছিলাম। কাজ শুরুর দিকে আমাকে একদিন তার অফিসে স্ক্রিপ্ট শোনানোর নাম করে ডেকে পাঠান। অফিসে পৌঁছে দেখি, পুরো অফিস খালি, কেউ নেই।’

‘তারপরই পরিচালক আমার সঙ্গে অশালীন আচরণসহ ইঙ্গিতপূর্ণ হাবভাব করেন। আমি বেশ ঘাবড়ে গিয়েছিলাম। এত বছর ইন্ডাস্ট্রিতে থাকার পর এমন বাজে প্রস্তাব আসতে পারে ভাবতে পারিনি। সেদিন মনের জোরে ঘর থেকে বেরিয়ে এসেছিলাম।’

‘ওই সময় তার স্ত্রীও এসে পড়েন। আমি প্রস্তাবে রাজি হইনি বলে আমার ফোটোশুট হলেও, ভূমিকন্যার পোস্টার থেকে আমাকে বাদ দেয়া হয়।’

এই অভিনেত্রীর অভিযোগ, ‘এই পরিচালকই সাত-আট বছর আগে আমার এক বান্ধবীকেও (সেও পর্দার পরিচিত মুখ) অশালীন প্রস্তাব দেন। আমার বান্ধবী আর্টিস্ট ফোরামে অভিযোগও করেছিল।’

এতদিন পর মুখ খোলার কারণ হিসেবে তিনি বলেন, ‘ঘটনাটার এক বছর কেটে গেছে। তখন মুখ খুলিনি কারণ আমি ওই বেসরকারি চ্যানেলটির সঙ্গে কনট্র্যাক্টে ছিলাম। তাহলে চ্যানেলটির নাম খামোকা জড়িয়ে যেত। দ্বিতীয়ত, মানসিকভাবে এতটাই ভেঙে পড়েছিলাম যে, ভেবে পাচ্ছিলাম না কী করব! ডিপ্রেশনে চলে গিয়েছিলাম। এখন মনে হল এই সব মানুষের মুখোশ খুলে দেওয়া দরকার। আজ আমাকে প্রস্তাব দিয়েছে। কাল নতুন কোনও মেয়েকে একই প্রস্তাব দেবে।’

অরিন্দম শীল ২০১৩ সাল থেকে পরিচালনায় নিয়মিত হন। আবর্ত (২০১৩), এবার শবর (২০১৫), হর হর ব্যোমকেশ (২০১৫), স্বাদে আহ্লাদেসহ (২০১৫) বেশ কয়েকটি ছবি পরিচালনা করেছেন।

অভিযোগের ব্যাপারে পরিচালক অরিন্দম শীল বলেছেন, ‘এটা হয়তো পলিটিক্যাল স্টান্ট। আমি জানি না ও কেন এসব বলছে। এতদিনের বন্ধু ও আমার। যেদিনের কথা ও বলছে সে দিন অফিস থেকে বেরিয়ে ও আমায় টেক্সট করেছিল, আই অ্যাম সো এক্সসাইটেড। একসঙ্গে ওয়ার্কশপ করতে হবে কিন্তু। সেই টেক্সটও দেখাতে পারি আমি। তার কথা মতো যে ‘কুপ্রস্তাব’ দেবে তাকে কি ও আবার পাল্টা টেক্সট করবে?’

‘‘শুধু তাই নয়, ‘মিতিনমাসি’-র সময় আমি নিজে তাকে আমন্ত্রণ করেছিলাম। ও বলেছিল আসার চেষ্টা করবে। হঠাৎ করে ও কেন এ সব মনগড়া কথা বলছে আমি সত্যিই জানি না। একজন নারী হঠাৎ করে কোনো পুরুষ সম্পর্কে যা কিছু একটা বলে দিল মানেই সেটা সত্যি হয়ে গেল? সে মিথ্যা বলছে।”

শিবানীর সঙ্গে ছাদনাতলায় ফারহান!

বিনোদন বাজার ॥ ফের বিয়ের ফুল ফুটতে চলেছে বলি অভিনেতা ফারহান আখতারের জীবনে। পাত্রী অভিনেত্রী-সঞ্চালক শিবানী দান্ডেকর। এক জনপ্রিয় সর্বভারতীয় দৈনিকের সূত্র অনুযায়ী, এই বছরের শেষেই সম্ভবত এক হচ্ছে চার হাত। সেই মতো এখন থেকেই চলছে দেদার কেনাকাটা। বছরের অক্টোবরের ২ তারিখে মুক্তি পাবে ফারহানের ছবি ‘তুফান’। সেই ছবি নিয়ে ভীষণ ব্যস্ত অভিনেতা। আর সে জন্যই আপাতত বিয়ের প্ল্যান একটু পিছিয়ে আছে।
গুঞ্জণ রয়েছে, আংটি বদল নাকি ২০১৯-এই চুপি চুপি সেরে ফেলেছিলেন তাঁরা। সোশ্যাল মিডিয়ায় হবু বর-কনের ঘনিষ্ঠ পোস্ট দেখে আপনিও বলতে বাধ্য হবেন ‘পারফেক্ট ম্যাচ’।
তবে এই প্রথম বার যে বিয়ের পিঁড়িতে বসতে চলেছেন ফারহান, এমনটা নয়। এর আগে সেলিব্রিটি হেয়ার স্টাইলিস্ট অধুনা ভবানীর সঙ্গে তাঁর বিয়ে হয়েছিল ২০০০ সালে। তাঁদের দুই মেয়ে রয়েছে, শাক্য এবং আকিরা। ২০১৭-এ বিচ্ছেদ হয়ে যায় তাঁদের। এর পরেই শিবানীর সঙ্গে সম্পর্কে জড়ান ফারহান।
আইপিএলে শিবানীর সঞ্চালনা মন কেড়েছিল দর্শকদের। সেখান থেকেই ক্রমশ লাইমলাইট পেতে থাকেন তিনি। সঞ্চালনার পাশাপাশি ভাল গানও করেন শিবানী। ‘রয়’, ‘সুলতান’-সহ বেশ কিছু ছবিতে অভিনয়ও করেছেন তিনি। তাঁর বোন অনুষাও বলি দুনিয়ার পরিচিত মুখ। বিভিন্ন রিয়ালিটি শো-তে সঞ্চালকের ভূমিকায় দেখা যায় তাঁকেও। জনপ্রিয় অভিনেতা কর্ণ কুন্দ্রার সঙ্গে সম্পর্কে রয়েছেন অনুষা।

দেশের উন্নয়নে বাণিজ্যিক কৃষির গুরুত্ব

কৃষি প্রতিবেদক ॥ কৃষি বাংলাদেশের অর্থনীতির অন্যতম চালিকাশক্তি। জীবনজীবিকার পাশাপাশি আমাদের সার্বিক উন্নয়নে কৃষি ওতপ্রোতভাবে জড়িয়ে আছে। তাই কৃষির উন্নয়ন মানে দেশের সার্বিক উন্নয়ন। টেকসই কৃষি উন্নয়নে সরকারের প্রচেষ্টা অব্যাহত রয়েছে। কৃষি ক্ষেত্রে সময়োপযোগী পদক্ষেপ এবং দিকনির্দেশনায় খোরপোশের কৃষি আজ বাণিজ্যিক কৃষিতে রূপান্তরিত হয়েছে। কৃষিতে বাংলাদেশের সাফল্য ঈর্ষণীয়। খাদ্যশস্য উৎপাদন, টেকসই খাদ্য নিরাপত্তা নিশ্চিতকরণ, কর্মসংস্থান ও রপ্তানি বাণিজ্যে কৃষি গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করছে। জনসংখ্যা বৃদ্ধি, কৃষিজমি কমতে থাকাসহ জলবায়ু পরিবর্তনের ফলে বন্যা, খরা, লবণাক্ততা ও বৈরী প্রকৃতিতেও খাদ্যশস্য উৎপাদনে বাংলাদেশ এখন বিশ্বে উদাহরণ। ধান, গম ও ভুট্টা বিশ্বের গড় উৎপাদনকে পেছনে ফেলে ক্রমেই এগিয়ে চলছে বাংলাদেশ। মোট দেশজ উৎপাদন তথা জিডিপিতে কৃষি খাতের অবদান ১৩ দশমিক ৬ শতাংশ। বর্তমান সরকার জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের স্বপ্নের ক্ষুধা ও দারিদ্র্যমুক্ত দেশ গড়ার লক্ষ্যে কৃষি খাতকে সর্বোচ্চ গুরুত্ব প্রদান করে কৃষির উন্নয়ন ও কৃষকের কল্যাণকে সর্বোচ্চ বিবেচনায় নিয়ে নানামুখী পদক্ষেপ গ্রহণ করা হয়েছে। খাদ্যশস্য উৎপাদনে বিশ্বে বাংলাদেশের স্থান দশম। দারিদ্র্য, ঘনবসতি, নগরজীবনের নানা অনিশ্চয়তা আর জলবায়ুর পরিবর্তনের ভেতর বাংলাদেশের সম্ভাবনা ও টিকে থাকার মূল জায়গাটি হচ্ছে ভূমি ও কৃষক সম্প্রদায়। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার গতিশীল নেতৃত্বে ১৯৯৬-২০০১ এবং ২০০৯-২০১৮ সময়ের সাফল্যের ধারাবাহিকতায় গত এক বছরে লাভজনক ও বাণিজ্যিকীকরণের অগ্রযাত্রায় কৃষি। উৎপাদনশীলতা বৃদ্ধির ধারাবাহিকতায় ২০১৮-১৯ অর্থবছরে দানাদার খাদ্যশস্যের উৎপাদন (৪৩২.১১ লাখ মেট্রিক টন) এর লক্ষ্যমাত্রা (৪১৫.৭৪ লাখ মেট্রিক টন) ছাড়িয়ে গেছে। দেশ আজ চালে উদ্বৃত্ত; ধান উৎপাদনে বাংলাদেশ এখন বিশ্বে চতুর্থ। ভুট্টা উৎপাদন বেড়ে হয়েছে ৪৬ লাখ টন। নিবিড় চাষের মাধ্যমে বাংলাদেশ সবজি উৎপাদনে বিশ্বে তৃতীয় অবস্থানে উন্নীত হয়েছে। সবজি উৎপাদন বেড়ে ১ কোটি ৭২ লাখ ৪৭ হাজার টন হয়েছে। আলু উৎপাদনে বাংলাদেশ উদ্বৃত্ত এবং বিশ্বে সপ্তম। এ বছর আলু উৎপাদন হয়েছে ১ কোটি ৯ লাখ টন। মাছ উৎপাদনে বাংলাদেশ এখন বিশ্বে চতুর্থ অবস্থানে রয়েছে। দেশে ফল উৎপাদন বৃদ্ধি পেয়েছে। আম উৎপাদনে বাংলাদেশ বিশ্বে সপ্তম এবং পেয়ারায় অষ্টম। আম উৎপাদন প্রায় ২৪ লাখ টনে উন্নীত হয়েছে। আলুসহ বিভিন্ন সবজি, ফল ও ফুল রপ্তানি সম্প্রসারণের নিমিত্তে উৎপাদন ও বাজার ব্যবস্থা উন্নয়নসহ কার্যকর ব্যবস্থা গৃহীত হয়েছে। যশোরের গদখালির পলিহাউসে রপ্তানিযোগ্য ফুল এবং নিরাপদ সবজি উৎপাদনের উদ্যোগ দেশি-বিদেশি মহলে প্রশংসিত হয়েছে। কৃষকের ন্যায্যমূল্য প্রাপ্তি ও নিরাপদ সবজি/ফল সহজলভ্য করার নিমিত্তে ঢাকায় শেরেবাংলা নগরে কৃষকের বাজার চালু করা হয়েছে যেখানে কৃষকরা তাদের উৎপাদিত পণ্য সরাসরি বাজারজাত করছে। ক্রমান্বয়ে এই ব্যবস্থা জেলা-উপজেলা শহরে সম্প্রসারিত হবে। ডাল, তেলবীজ, মসলা ও ভুট্টা চাষ বৃদ্ধির জন্য বিভিন্ন সহায়তা অব্যাহত আছে। এ ছাড়াও কাজু বাদাম ও কফি ইত্যাদি অর্থকরী ফসল চাষ ও বাজারব্যবস্থা উন্নয়নে মন্ত্রণালয় কাজ করছে। ফসলের উৎপাদন খরচ হ্রাস করার লক্ষ্যে ২০০৯ থেকে ২০১৮ পর্যন্ত সারের মূল্য ৪ দফা কমিয়ে প্রতি কেজি টিএসপি ৮০ টাকা থেকে কমিয়ে ২২ টাকা, এমওপি ৭০ টাকা থেকে ১৫ টাকা, ডিএপি ৯০ টাকা থেকে ২৫ টাকায় নির্ধারণ করেছিল। ২০১৯-২০ অর্থবছরে কৃষক পর্যায়ে ডিএপি সারের খুচরা মূল্য ২৫ টাকা থেকে কমিয়ে ১৬ টাকা করা হয়েছে; কৃষকদের জন্য এটা ছিল গত বছরে মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর সেরা উপহার। বর্তমান কৃষিবান্ধব সরকার কর্তৃক গৃহীত কৃষি প্রণোদনা/পুনর্বাসন কর্মসূচির আওতায় ২০০৮-০৯ অর্থবছর থেকে এ পর্যন্ত ৯৬০ কোটি ৩৩ লাখ ৫৭ হাজার টাকা প্রদান করা হয়েছে- যার মাধ্যমে ৮৬ লাখ ৪০ হাজার ৪৪ জন কৃষক উপকৃত হয়েছেন। এর মধ্যে ২০১৮-১৯ অর্থবছরে ১৩৩ কোটি ১৫ লাখ ৬২ হাজার টাকা কৃষি উপকরণ ও আর্থিক সহায়তা হিসেবে প্রদান করা হয়েছে। ফসলের উন্নত ও প্রতিকূলতা সহিষ্ণু জাত উদ্ভাবনে অভূতপূর্ণ সাফল্য এসেছে। ২০১৮-১৯ সালে অবমুক্তকৃত বিভিন্ন ফসলের উদ্ভাবিত প্রতিকূলতা সহিষ্ণু জাত ১২টি, উদ্ভাবিত প্রযুক্তি ৯৫টি এবং নিবন্ধিত জাত ২৬টি। গম ও ভুট্টার গবেষণা সম্প্রসারণের জন্য সরকার ২০১৮ সালে গম ও ভুট্টা গবেষণা ইনস্টিটিউট প্রতিষ্ঠা করা হয়েছে। গমের ১টি জাত উদ্ভাবন, গম ও ভুট্টার ৪ হাজার ৫শটি জার্মপস্নাজম সংগ্রহ এবং রোগবালাই ব্যবস্থাপনার ওপর ১টি প্রযুক্তি উদ্ভাবন করা হয়েছে। বিভিন্ন প্রকল্পের মাধ্যমে সারাদেশে ৫৩ লাখ ৫৪ হাজার ৮০০ নারিকেল, তাল, খেজুর ও সুপারি চারা বিতরণ ও রোপণ করা হয়েছে। মাল্টা, রামবুতান, ড্রাগন প্রভৃতি বিভিন্ন ধরনের অপ্রচলিত ও বিদেশি ফল চাষে উৎসাহ প্রদান অব্যাহত রয়েছে। ২০১৮-১৯ সালে সম্প্রসারিত সেচ এলাকা ২২ হাজার ৮৪০ হেক্টর। সরবরাহকৃত সেচযন্ত্র ৫৪৭টি এবং স্থাপিত সোলার প্যানেলযুক্ত সেচযন্ত্র ৯৫টি। ৪৮০টি সেচ অবকাঠামো, ৫৮১ কিলোমিটার খাল-নালা খনন/পুনঃখনন, ৬৮২ কিলোমিটার ভূ-গর্ভস্থ (বারিড পাইপ) সেচনালা এবং ৮ কিলোমিটার ভূ-উপরিস্থ সেচনালা, ২৪ কিলোমিটার গাইড/ফসল রক্ষা বাঁধ নির্মাণ করা হয়েছে। ক্ষুদ্র সেচ ব্যবস্থার আওতায় সৌরবিদ্যুৎ চালিত প্রযুক্তি ব্যবহার করে সুপেয় পানির ব্যবস্থাকরণ ও সেচ সম্প্রসারণের লক্ষ্যে ১০০টি পাতকুয়া স্থাপন করা হয়েছে। কৃষি যান্ত্রিকীকরণ ত্বরান্বিত করার লক্ষ্যে দেশের হাওর ও দক্ষিণাঞ্চলের উপকূলীয় এলাকায় কৃষকের জন্য ৭০ শতাংশ এবং অন্যান্য এলাকার জন্য ৫০ শতাংশ হারে কৃষি যন্ত্রপাতি ক্রয়ে ভর্তুকি প্রদান করা হচ্ছে। এ পর্যন্ত ৩২২ কোটি ৮০ হাজার টাকা আর্থিক সহায়তা প্রদান করা হয়েছে। এ জন্য নতুন প্রকল্প নেয়া হচ্ছে। জাতীয় কৃষি যান্ত্রিকীকরণ নীতিমালা-২০১৯ চূড়ান্ত করা হয়েছে, যাতে বিনা সুদে কৃষি যন্ত্রপাতি ক্রয়ের জন্য ঋণের ব্যবস্থা থাকবে। ডিজিটাল কৃষি তথা ‘ই-কৃষি’ প্রবর্তনের ধারা জোরদার করা হয়েছে। দেশে মোট ৪৯৯টি কৃষি তথ্য ও যোগাযোগ কেন্দ্র (এআইসিসি), কৃষি কল সেন্টার ১৬ হাজার ১২৩, ইউটিউব, কৃষি তথ্য বাতায়ন, কৃষক বন্ধু ফোন-৩ হাজার ৩৩১, ই-বুক, অনলাইন সার সুপারিশ, ই-সেচসেবা, কৃষকের জানালা, কৃষকের ডিজিটাল ঠিকানা, কমিউনিটি রেডিওসহ বিভিন্ন মোবাইল এবং ওয়েব অ্যাপ্লিকেশন ও সফটওয়্যার ব্যবহৃত হচ্ছে। ২০১৮-১৯ অর্থবছরে বীজতুলা বিক্রয়ে ই-সেবা, পোকা দমনে পরিবেশবান্ধব ইয়েলো স্টিকি ট্র্যাপ ব্যবহার, নগর কৃষি, ডিজিটাল কৃষি ক্যালেন্ডার বাছাই করে দেশব্যাপী ব্যবহারের সিদ্ধান্ত হয়েছে। বাংলাদেশ খাদ্যশস্য উৎপাদনে আশানুরূপ উন্নতি হয়েছে, এখন কৃষি বহুমুখীকরণ ও প্রক্রিয়াজাতকরণ এবং বাণিজিকীকরণ ব্যবস্থাপনা গড়ে তোলার প্রচেষ্টা অব্যাহত আছে। বাংলাদেশের কৃষক প্রতিদিন মাথার ঘাম পায়ে ফেলে বিভিন্ন ধরনের ফসল উৎপাদন করে- যেমন দেশবাসীর খাদ্য চাহিদা পূরণ করছেন, তেমনি নিজেদের ভাগ্যেরও পরিবর্তন ঘটাচ্ছেন। প্রচলিত ফসলের পাশাপাশি নানা মূল্যবান অপ্রচলিত ফসল উৎপাদনেও তারা সফলতা দেখাচ্ছেন। দেশের কৃষক দারিদ্রমুক্ত হওয়া মানেই, দেশের অর্থনৈতিক সচ্ছলতার দ্বার উন্মুক্ত হয়ে যাওয়া। কৃষিক্ষেত্রে যে কোনো ধরনের সাফল্য তাই দেশবাসীর মুখে হাসি ফোটায়। নির্বাচনী ইশতেহার-২০১৮, এসডিজি-২০৩০, রূপকল্প-২০২১ এবং রূপকল্প-২০৪১ এর আলোকে জাতীয় কৃষিনীতি, ৭ম পঞ্চবার্ষিকী পরিকল্পনা, টেকসই উন্নয়ন অভীষ্ট, ডেল্টাপ্লান-২১০০ এবং অন্যান্য পরিকল্পনা দলিলের আলোকে সময়াবদ্ধ কর্মপরিকল্পনা গ্রহণ করেছে। এসব পরিকল্পনা বাস্তবায়ন হলেই কৃষিসহ সব ক্ষেত্রে বঙ্গবন্ধুর স্বপ্নের সোনার বাংলা বাস্তব রূপ পাবে।
লেখক ঃ কৃষিবিদ এম আব্দুল মোমিন

বার্সার সঙ্গে ‘আলোচনা চলছে’ কোচ চাভির

ক্রীড়া প্রতিবেদক ॥ গত কদিন ধরে স্প্যানিশ সংবাদমাধ্যমে খবর, চাপে থাকা কোচ এরনেস্তো ভালভেরদের পরিবর্তে বার্সেলোনার দায়িত্বে আসতে পারেন চাভি এরনান্দেস। কাতালান ক্লাবটির প্রতিনিধিদের সঙ্গে আলোচনা চলছে বলে নিজেই জানালেন বিশ্বকাপ জয়ী সাবেক এই মিডফিল্ডার। বার্সেলোনার হয়ে সবচেয়ে বেশি ম্যাচ খেলার রেকর্ডটা এখনও চাভির দখলে। ১৯৯৮ সালে কাম্প নউয়ে পা রাখার পর ১৭ বছরের ক্যারিয়ারে তিনি জিতেন ২৫টি ট্রফি। যার মধ্যে আছে আটটি লা লিগা ও চারটি চ্যাম্পিয়ন্স লিগ। স্প্যানিশ সুপার কাপের সেমি-ফাইনালে বৃহস্পতিবার আতলেতিকো মাদ্রিদের কাছে বার্সেলোনা ৩-২ গোলে হারের পর থেকে ৫৫ বছর বয়সী ভালভেরদের বিদায়ের গুঞ্জন জোরালো হয়েছে। পরবর্তী কোচ হিসেবে বেশ জোরেশোরে শোনা যাচ্ছে ক্লাব কিংবদন্তি চাভির নাম। তবে এখনই এ বিষয়ে বিস্তারিত কিছু বলতে চাচ্ছেন না তিনি। বর্তমানে কাতারের ক্লাব আল সাদের কোচের দায়িত্বে আছেন ৩৯ বছর বয়সী চাভি। বার্সেলোনার স্পোর্টিং ডিরেক্টর এরিক আবিদাল ও প্রধান নির্বাহী অস্কার গ্রাউয়ের সঙ্গে সম্প্রতি  আলোচনা হয়েছে বলে রোববার নিশ্চিত করেন তিনি। একই সঙ্গে জানান, ভবিষ্যতে সাবেক ক্লাবের কোচ হওয়ার স্বপ্ন দেখেন তিনি। “আমি কিছু বলতে পারছি না। তারা আমার সঙ্গে আলোচনা করতে এসেছিলেন। আমরা অনেক কিছু নিয়ে আলাপ করেছি। দুঃখিত, আমি এর বেশি কোনো তথ্য দিতে পারব না।” “বার্সেলোনার কোচ হওয়া আমার স্বপ্ন, এটি আমি লুকাতে পারি না। আমি এটি অনেকবার বিভিন্ন সাক্ষাৎকারে বলেছি। সবাই জানে, আমি আমার হৃদয়ের গভীর থেকে বার্সেলোনাকে সমর্থন করি।

দাবানলে ক্ষতিগ্রস্তদের সাহায্যার্থে ২২ গজে পন্টিং-ওয়ার্ন

ক্রীড়া প্রতিবেদক ॥ আবারও ব্যাট-বলের লড়াইয়ে দেখা যাবে অস্ট্রেলিয়ার সাবেক অধিনায়ক রিকি পন্টিং, কিংবদন্তি লেগ স্পিনার শেন ওয়ার্নসহ দেশটির এক ঝাঁক তারকা ক্রিকেটারকে। তবে কোনো পেশাদার ম্যাচে নয়, দেশে বিধ্বংসী দাবানলে ক্ষতিগ্রস্তদের সাহায্যার্থে আগামী মাসে এক চ্যারিটি টি-টোয়েন্টি ম্যাচে খেলবেন তারা। রোববার এক বিবৃতিতে এই খবর নিশ্চিত করে ক্রিকেট অস্ট্রেলিয়া। জাতীয় দলের কোচ জাস্টিন ল্যাঙ্গার, সাবেক উইকেটকিপার-ব্যাটসম্যান অ্যাডাম গিলক্রিস্ট ও মাইকেল ক্লার্ক খেলবেন বলেও জানানো হয়। ৮ ফেব্র“য়ারি ম্যাচটি মাঠে গড়াবে। সেপ্টেম্বর থেকে শুরু হওয়া কয়েকটি দাবানলে ব্যাপক ক্ষয়ক্ষতি হয়েছে। এ পর্যন্ত অন্তত ২৭ জন নিহত হয়েছে। বহু মানুষ নিখোঁজ রয়েছে এবং প্রায় দেড় হাজার বাড়ি পুড়ে ছাই হয়ে গেছে।

ক্ষতিগ্রস্তদের সাহায্যার্থে এগিয়ে আসছেন বিশ্বের অনেক অ্যাথলেট। তহবিল গঠনের উদ্দেশ্যে নিলামে তোলা শেন ওয়ার্নের ‘ব্যাগি গ্রিন’ ক্যাপটি গত শুক্রবার বিক্রি হয় ১০ লাখ সাত হাজার পাঁচশ অস্ট্রেলিয়ান ডলারে। এছাড়া রোববার টেনিসের তারকা সেরেনা উইলিয়ামসও ঘোষণা দিয়েছেন ক্ষতিগ্রস্তদের পাশে দাঁড়ানোর। অকল্যান্ড ক্লাসিক জিতে পাওয়া প্রাইজ মানি পুরোটাই দান করে দেওয়ার কথা জানিয়েছেন যুক্তরাষ্ট্রের এই তারকা। টুর্নামেন্টটির নারী এককে চ্যাম্পিয়ন হয়ে ৪২ হাজার ডলার জিতেছেন সেরেনা। এর আগে ব্রিসবেন ইন্টারন্যাশনাল থেকে পাওয়া প্রাইজ মানির পুরোটাই একই উদ্দেশ্যে দান করার ঘোষণা দেন মেয়েদের টেনিসের এক নম্বর তারকা অস্ট্রেলিয়ার অ্যাশলি বার্টি।

হাতে ১৪ সেলাই নিয়েই খেলতে চান মাশরাফি

ক্রীড়া প্রতিবেদক ॥ বিপিএল চলতি আসরের ৪২তম ম্যাচে শনিবার ফিল্ডিংয়ের সময় হাতে চোট পান মাশরাফি বিন মুর্তজা। তার হাতের চোট এতটাই মারাত্মক যে, ১৪টি সেলাই দিতে হয়েছে। তারপরও বিপিএলের পে¬-অফের ম্যাচে খেলতে আগ্রহী ঢাকা পাটুনের অধিনায়ক মাশরাফি। এ ব্যাপারে ঢাকা প¬াটুনের ম্যানেজার আহসান উল¬াহ জানান, মাশরাফি আত্মবিশ্বাসের সঙ্গেই বলেছে, খেলতে পারবে, কোনো সমস্যা হবে না। আমরা বুঝতে পারছি না কী করব। সে একজন লড়াকু মানুষ। আমরা মাশরাফির ওপরই ছেড়ে দিয়েছি, সে চাইলে খেলতে পারে। সোমবার বিপিএল ফ্লে-অফের ম্যাচে চট্টগ্রাম চ্যালেঞ্জার্সের বিপকক্ষে খেলবে ঢাকা প¬াটুন। শনিবার মিরপুরে বিপিএল ম্যাচে খুলনা টাইগার্সের বিপক্ষে ক্যাচ ধরতে গিয়ে বাঁ-হাতের আঙ্গুলে চোটাক্রান্ত হন জাতীয় দলের ওয়ানডে অধিনায়ক মাশরাফি। খুলনার ইনিংসের ১১তম ওভারে বোলিং পজিশনে ছিলেন মেহেদী হাসান। তার বলে সজোরে ব্যাট চালান খুলনার দক্ষিণ আফ্রিকান তারকা ব্যাটসম্যান রাইলি রুশো। দ্রুতগতিতে আসা বলটি তালুবন্দি করতে জাম্প দেন মাশরাফি। কিন্তু বলটি মাশরাফির হাতের তালুতে জমা না হয়ে আঙ্গুলে আঘাত হানে। যে কারণে প্রচন্ড ব্যথা পান ঢাকা প¬াটুন অধিনায়ক। মাঠে সামান্য শুশ্র“ষা নিয়ে সাজঘরে ফেরেন মাশরাফি। বিপিএল সপ্তম আসরের ৪২তম ম্যাচে টস হেরে প্রথমে ব্যাটিং করে ৪ উইকেটে ২০৫ রান সংগ্রহ করে ঢাকা প¬াটুন। দলের হয়ে সর্বোচ্চ ৯১ রান করেন মুমিনুল হক সৌরভ। আর ৩৬ বলে অপরাজিত ৬৮ রান করেন মেহেদী হাসান। ২০৬ রানের বিশাল টার্গেট তাড়া করতে নেমে নাজমুল হোসেন শান্তর সেঞ্চুরিতে নির্ধারিত ওভারের ১১ বল আগেই বিপিএলে রেকর্ড সর্বোচ্চ রান তাড়া করে ৮ উইকেটের দাপুটে জয় পায় খুলনা টাইগার্স। দলের হয়ে সর্বোচ্চ ১১৫ রান করেন শান্ত। ২৫ বলে ৪৫ রান করেন মেহেদী হাসান মিরাজ।

বঙ্গবন্ধু বিপিএলে সেরা পাঁচে এগিয়ে বাংলাদেশিরা

ক্রীড়া প্রতিবেদক ॥ বঙ্গবন্ধু বিপিএলে শেষ হয়েছে গ্র“প পর্ব। এ পর্যন্ত সাফল্যের দিক থেকে বিদেশি খেলোয়াড়দের চেয়ে কোন অংশেই পিছিয়ে নেই বাংলাদেশের ক্রিকেটাররা। বরং তালিকায় এগিয়েই রয়েছে বাংলাদেশের বোলার-ব্যাটসম্যানরা। সেরা পাঁচ রান সংগ্রাহকের তালিকায় তিন জনই বাংলাদেশি। গ্র“প পর্ব শেষে রান সংগ্রাহকের তালিকায় শীর্ষে আছেন যারা ঃ- ১) রাইলি রুশো (খুলনা টাইগার্স): রাউন্ড রবিন লিগ শেষে এখন পর্যন্ত রান সংগ্রাহকের তালিকায় শীর্ষে আছেন রাইলি রুশো। ১২ ম্যাচে ৫০.৮৯ গড়ে ৪৫৮ রান করেছেন দক্ষিণ আফ্রিকার এই ব্যাটসম্যান। ২) মুশফিকুর রহিম (খুলনা টাইগার্স): রান সংগ্রাহকের দুই নম্বরে বাংলাদেশের ডিপেন্ডেবল ব্যাটসম্যান মুশফিকুর রহিম। খুলনা টাইগার্সের এই অধিনায়ক ১২ ম্যাচে ৭৪.৮৩ গড়ে করেছেন ৪৪৯ রান। ৩) ডেভিড মালান (কুমিল¬া ওয়ারিয়র্স): তৃতীয় স্থানে আছেন আরেক বিদেশি ব্যাটসম্যান ডেভিড মালান। তবে তার দল ছিটকে গেছে টুর্নামেন্ট থেকে। ১১ ইনিংসে তার সংগ্রহ ৪৪৪ রান। ৪) লিটন দাস (রাজশাহী রয়্যালস): দীর্ঘদিন ফর্মহীন থেকে নিজেকে ফিরে পেয়েছেন বাংলাদেশি এ ওপেনার। ১২ ম্যাচে ৩৮.৩৬ গড়ে তিনি করেছেন ৪২২ রান। ৫) ইমরুল কায়েস (চট্টগ্রাম চ্যালেঞ্জার্স): এ টুর্নামেন্টের মাধ্যমে আলোচনায় এসেছেন বাংলাদেশের এক সময়ের হার্ট-হিটার এ ব্যাটসম্যান। ১১ ম্যাচে ৫৭.৮৬ গড়ে ৪০৫ রান করেছেন তিনি।

বোলাদের মধ্যে বেশি উইকেট শিকারের তালিকায় যাদের নাম ঃ -১) মুস্তাফিজুর রহমান (রংপুর রেঞ্জার্স): বাংলাদেশের জনপ্রিয় কাটার মাস্টার মুস্তাফিজকে নিয়ে অনেক সমালোচনার জন্ম দিয়েছিলো। ক্রিকেট ভক্তদের ধারণা তিনি হয়তো আর তার স্বরূপে ফিরতে পারবেন না। কিন্তু সমালোচকদের মুখ বন্ধ করে বঙ্গবন্ধু বিপিএলে সেরা উইকেট শিকারির তালিকায় আছেন মুস্তাফিজ। ১১ ম্যাচে ১৯ উইকেট নিয়ে তালিকার এক নম্বরে তার নাম। ২) মেহেদী হাসান রানা (চট্টগ্রাম চ্যালেঞ্জার্স): বেশি উইকেট শিকারির তালিকার দ্বিতীয় স্থানেও রয়েছেন আরেক বাংলাদেশির নাম। মাত্র ৮ ম্যাচ খেলে তার উইকেটের সংখ্যা ১৭। ৩) রুবেল হোসেন (চট্টগ্রাম চ্যালেঞ্জার্স): তালিকার শীর্ষ তিন নম্বরে আছেন চট্টগ্রামের আরেক বোলার বাংলাদেশি রুবেল হোসেন। ১০ ম্যাচ খেলে তার উইকেটের সংখ্যা ১৬। ৪) ফ্রাইলিঙ্ক (খুলনা টাইগার্স): শীর্ষ উইকেট শিকারির তালিকায় বিদেশিদের মধ্যে প্রথম নাম তার। টুর্নামেন্টে ৫ উইকেট শিকারের রেকর্ডও আছে তার নামের পাশে। খুলনার এ বোলার ১০ ম্যাচ খেলে নেন ১৫ উইকেট। ৫) মুজিব উর রহমান (কুমিল¬া ওয়ারিয়র্স): টুর্নামেন্ট থেকে বাদ পড়া কুমিল¬ার এ বোলার আলো ছড়িয়ে দর্শকদের মন জয় করে নিয়েছেন। রান হিসেবি এ বোলার ১১ ম্যাচ খেলে ১৪ উইকেট নিয়ে তালিকার সেরা পাঁচে জায়গা করে নিয়েছেন। তবে টুর্নামেন্টের সেরা দশ বোলারের তালিকায় থাকা বাকি চার জনই বাংলাদেশি। তারা হলেন, শাহিদুল ইসলাম, এবাদত হোসেন, সৌম্য সরকার ও আল-আমিন হোসেন।