কুষ্টিয়ার সেই শিল্পী মেম্বরের বিরুদ্ধে অভিযোগের পুণ:তদন্তে আবার শতভাগ সত্যতা পেল তদন্ত দল

নিজ সংবাদ ॥ বয়স্ক, বিধবা, পুঙ্গ, মাতৃকালিন ভাতা, ভিজিএফ, চালের কার্ড, নলকুপ প্রদান, বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানে চাকুরী দেয়ার নামে মিথ্যা প্রতিশ্র“তি দিয়ে শত শত মানুষের কাছে থেকে কৌশলে  মোটা অংকের নগদ অর্থ হাতিয়ে নেয়ার অভিযোগে কুষ্টিয়ার বটতৈল ইউনিয়নের সেই শিল্পী মেম্বরের বিরুদ্ধে জেলা প্রশাসক ও  চেয়ারম্যানের কাছে মেম্বরের বিচার দাবী আবারও আবেদন করেন অর্ধশত প্রতারিত নারী-পুরুষ। আবেদন পাওয়ার পর তদন্তে নামেন বটতৈল ইউনিয়ন পরিষদ থেকে গঠিত তদন্ত দল। এই তদন্ত দলে ইউনিয়ন সচিব প্রশান্ত কুমার প্রদীপ ও ২ জন ইউপি সদস্য কালাম ও সালাউদ্দিনকে নিয়ে তদন্ত শুরু করেন। শিল্পী  মেম্বরের বিরুদ্ধে নতুন করে তদন্তে আবার শতভাগ সত্যতা  পেয়েছেন এবং তদন্ত রিপোর্ট চেয়ারম্যানের কাছে জমা দিয়েছেন বলে জানান তদন্ত দলের সদস্য আবুল কালাম । এদিকে বার বার তদন্তে অভিযোগের সত্যতা পাওয়া গেলেও কেন কি কারনে কর্তৃপক্ষ ওই মেম্বরের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা গ্রহণ করছেন না এ নিয়ে ইউনিয়নবাসীর মধ্যে নানা সমালোচনা চলছে। এদিকে সচেতন মহলের কেউ কেউ বলছেন তদন্তে আর কতবার সত্যতা পাওয়া  গেলে দুর্নীতিবাজ শিল্পী মেম্বরের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেবে সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষ? এবার ইউনিয়ন পরিষদ থেকে গঠিত তদন্তে অভিযোগের সত্যতা পাওয়ার পর অভিযুক্ত মেম্বরের বিরুদ্ধে কি ব্যবস্থা নেন এটাই দেখার অপেক্ষায় বটতৈল ইউনিয়নবাসী। এ ব্যাপারে জানতে বটতৈল ইউনিয়নের চেয়ারম্যান এম এ মমিন মন্ডলের  মোবাইল ফোনে একাধিকবার ফোন দিয়েও তাকে পাওয়া যায়নি।

কুষ্টিয়ার কবুরহাটে আখ ক্ষেতে আগুন ধরিয়ে অভিনব কায়দায় গরু চুরি

নিজ সংবাদ ॥ রাতে মাঠে আখের ক্ষেতে আগুন ধরিয়ে দিয়ে অভিনব কায়দায় কৃষকের গোয়াল ঘর থেকে গাভী-বাছুরসহ ৩টি গরু চুরির ঘটনা ঘটেছে। এ ছাড়াও ধান চুরি বিভিন্ন মালামালসহ একের পর চুরির ঘটনায় চোরের আতংকে এখন নির্ঘুম রাত কাটাচ্ছে কুষ্টিয়া সদর উপজেলার বটতৈল ইউনিয়নের কবুরহাট কদমতলার এলাকাবাসী। এলাকাবাসী সূত্রে জানা যায়, গত বৃহস্পতিবার রাতে কবুরহাট বটতৈল মধ্যবতি এলাকার বিলের মাঠে রাশিদুল ও সুমনের আখের ক্ষেতে আগুন ধরিয়ে দেয় সংঘবদ্ধ চোর। এ সময় আখ ক্ষেতে আগুন দাউ দাউ করে জ্বলতে থাকে। এ অবস্থা দেখে এলাকার নারী-পুরুষ দৌড়ে মাঠের দিকে যায়। খবর দেয়া হয় ফায়ার সার্ভিসে। পরে কদমতলার কৃষক দাউদ ফকিরসহ এলাকাবাসীর চেষ্টায় ফায়ার সার্ভিসের কর্মিরা  পৌঁছানোর আগেই আগুন নিয়ন্ত্রণে আসে। এরই মাঝে সুমন ও রাশিদুলের দুই বিঘা জমির আখ পুড়ে ক্ষতিগ্রস্ত হয়। ঘটনার কিছু সময় পর দাউদ ফকির বাড়ি ফিরে দেখে তার  গোয়ালে থাকা গাভী-বাছুরসহ ৩টি গরু নেই। এরপর আশপাশে খুঁজেও আর গরুগুলো পাওয়া যায়নি। এলাকাবাসী জানান, প্রায় প্রতিরাতেই ওই এলাকায় ছোট বড় চুরির ঘটনা ঘটে চলেছে। গত বুধবার ওই এলাকার বেশ কয়েকটি পরিবার সাংবাদিক অর্পণ  মাহমুদের বাড়ির ছাদে কুমড়ো বড়ি শুকাতে দেয়। এছাড়া দু’জন বাসমতি ধান ওই ছাদে শুকাতে দেয়। কিন্তু বড়ি ও ধান রাতে  সেখানে রাখায় এবং সাংবাদিক বিশেষ কাজে ঢাকাতে চলে যায় ওই সুযোগেই রাতের কোন এক সময়  সেগুলো চুরি করে নিয়ে যায়। এভাবে একের পর এক এলাকায় ছোট বড় চুরির ঘটনা ঘটেই চলেছে। এলাকায় হঠাৎ করে মাদক বিক্রেতা ও মাদকাসক্তদের আনাগোনা বেড়ে যাওয়ায় চুরির ঘটনা ঘটছে বলে ধারণা এলাকাবাসীর। যে কারনে চোর আতংকে নির্ঘুম রাত কাটছে কবুরহাট কদমতলাবাসীর।

মিরপুরে জাসদ ছাত্রলীগের প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী পালন

মিরপুর প্রতিনিধি ॥ কুষ্টিয়ার মিরপুরে বাংলাদেশ জাসদ ছাত্রলীগের ৭২তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী পালিত হয়েছে। শনিবার সকালে উপজেলা জাসদের দলীয় কার্যালয়ে এ প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী পালিত হয়। অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি ছিলেন উপজেলা জাসদের সাধারন সম্পাদক আহাম্মদ আলী। এসময় উপস্থিত ছিলেন- উপজেলা জাসদের সাংগঠনিক সম্পাদক আফতাব উদ্দীন, আমলা ইউনিয়ন জাসদের সভাপতি আজাম্মেল হক, মিরপুর উপজেলা ছাত্রলীগের সভাপতি মীর মুক্তিছুর রহমান মির্জা, সাধারন সম্পাদক আল-আমিন, যুগ্ম সাধারন সম্পাদক তানিয়া ইসলাম, সাহিত্য সাংস্কৃতিক সম্পাদক রিংকি খাতুন, পৌর ছাত্রলীগের সভাপতি মেহফুজুর রহমান রাব্বী সহ বিভিন্ন  নেতৃবৃন্দ। উল্লেখ্য, ১৯৪৮ সালের এই দিনে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ফজলুল হক মুসলিম হলে ছাত্রলীগ প্রতিষ্ঠিত হয়েছিল। জাতি গঠনের প্রতিটি সোপানে ছাত্রলীগের রয়েছে গৌরবোজ্জ্বল ভূমিকা। নানা চড়াই-উৎরাই পেরিয়ে সংগঠনটি ৭২ বছরে পদার্পন করল। সাড়ম্বরপূর্ণ অনুষ্ঠানের মাধ্যমে দু’দিনের কর্মসূচি দিয়ে এবার প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী পালন করতে যাচ্ছে সংগঠনটি। বাড়তি আকর্ষণ হিসেবে থাকছে সাবেক নেতাদের পুনর্মিলনী অনুষ্ঠান।

দৌলতপুর সীমান্তে ফেনসিডিল উদ্ধার

দৌলতপুর প্রতিনিধি ॥ কুষ্টিয়ার দৌলতপুর সীমান্তে ফেনসিডিল উদ্ধার হয়েছে। গতকাল শনিবার সন্ধ্যা সোয়া ৬টার দিকে চিলমারীর ডিগ্রিরচরে বিজিবি অভিযান চালিয়ে ১৩৪ বোতল ভারতীয় ফেনসিডিল উদ্ধার করেছে। তবে উদ্ধার হওয়া মাদকের সাথে জড়িত কেউ আটক হয়নি। চরচিলমারী বিওপি’র টহল দল এ অভিযান চালায়। অপরদিকে ঠোটারপাড়া বিওপি’র টহল দল শুক্রবার রাত ১০টার দিকে শকুনতলা মাঠে অভিযান চালিয়ে ১৯ বোতল মদ উদ্ধার করেছে।

বাংলাদেশের রাজনীতি পরিবারতন্ত্রের দিকে যাচ্ছে – ফখরুল

ঢাকা অফিস ॥ বাংলাদেশের রাজনীতি ‘পরিবারতন্ত্রের দিকে যাচ্ছে’ বলে মন্তব্য করেছেন বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর। গতকাল শনিবার জাতীয় প্রেস ক্লাবে এক অনুষ্ঠানে তিনি ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগকে ইঙ্গিত করে এই মন্তব্য করলেও তার দলের চিত্রও ভিন্ন নয়। ফখরুল বলেন, “আপনি দেখবেন, এখানে একদলীয় শুধু নয়, এক ব্যক্তিও হয়ে যাচ্ছে, একটা পরিবার হয়ে যাচ্ছে। “তাকিয়ে দেখেন নমিনেশন কাকে দেয়, কারা আসে, কে কোথায় আসে, আপনার সংগঠনগুলোর প্রধান কারা হয়? তাহলে বোঝা যাবে যে, তারা আজকে পরিবারতন্ত্রের দিকে যাচ্ছে।” আওয়ামী লীগের দেশ পরিচালনার সমালোচনা করে তাদের ক্ষমতা থেকে হঠাতে সবাইকে ঐক্যবদ্ধ হওয়ার আহ্বান জানান বিএনপি মহাসচিব। তিনি বলেন, “এই লড়াই কোনো ছোট-খাটো লড়াই নয়, জোর লড়াই। এই লড়াইয়ে সবাইকে অংশ নিতে হবে। আসুন, আমরা সবাই সেই লক্ষ্যে এগিয়ে যাই। “ভয়াবহ দানবীয় যে সরকার, তাকে সরিয়ে জনগণের সরকার প্রতিষ্ঠা করবার জন্য, নিরপেক্ষ সরকারের অধীনে, নিরপেক্ষ নির্বাচন কমিশনের পরিচালনায় একটা নতুন নির্বাচন আমাদের আদায় করে নিতে হবে।” এর মধ্যেও ঢাকা সিটি করপোরেশন নির্বাচনে অংশ নেওয়ার ব্যাখ্যা দেন ফখরুল। তিনি বলেন, “আমরা বলেছি যে, নির্বাচনটাকে আমরা একটা আন্দোলনের অংশ হিসেবে নিয়েছি। এই নির্বাচনের মধ্য দিয়ে আমরা জনগণের কাছে যেতে চাই। “জনগণকে সঙ্গে নিয়েই আমরা এই সরকারকে নিয়মতান্ত্রিকভাবে পরাজিত করব। এটাই আমাদের কাজ, সেই কাজটি আমরা করে যাচ্ছি। আমরা বিশ্বাস করি, এতে আমরা সফল হবে।” নাইকো দুর্নীতির মামলা খালেদা জিয়ার বিরুদ্ধে চললেও কানাডার আদালতের রায়ে এই দুর্নীতির প্রমাণ মেলেনি বলে দাবি করেন বিএনপি মহাসচিব ফখরুল। তিনি বলেন, “নাইকো দুর্নীতির মামলা যেটা এই সরকার করেছে, মূল যে মামলা কানাডাতে, সেখানে আন্তর্জাতিক সালিশ নিষ্পত্তিকারী ট্রাইব্যুনালের রায়ের তথ্য গোপন করে রেখেছে এই সরকার। “ইতোমধ্যে এই মামলার রায় হয়েছে। এই মামলায় বলা হয়েছে যে, কোনো রকম দুর্নীতি হয়নি এবং দেশনেত্রী বেগম খালেদা জিয়াসহ অন্যান্য যাদেরকে এই মামলার সঙ্গে যুক্ত করা হয়েছিল, তারা সম্পূর্ণ নির্দোষ।” বিএনপি চেয়ারপারসনের বিরুদ্ধে দায়ের করা অন্য মামলাগুলোও ভিত্তিহীন বলে দাবি করেন ফখরুল। তিনি বলেন, “সম্পূর্ণ রাজনৈতিক প্রতিহিংসায় অন্যায়ভাবে দীর্ঘদিন ধরে খালেদা জিয়াকে অসুস্থবস্থায় আটক রাখা হয়েছে।” খালেদার ছেলে বিএনপির ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক রহমানের বিরুদ্ধে মামলাগুলোও ভিত্তিহীন বলে দাবি করেন ফখরুল। জিয়া পরিষদের উদ্যোগে সংগঠনটির সদ্য প্রয়াত নেতা কবীর মুরাদের স্মরণে নাগরিক স্মরণ সভায় বক্তব্য রাখেন ফখরুল। গত ৭ ডিসেম্বর কবীর মুরাদ মারা যান। যিনি বিএনপি চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা পরিষদেরও সদস্যও ছিলেন। জিয়া পরিষদের সিনিয়র ভাইস চেয়ারম্যান এম সলিমুল্লাহ খানের সভাপতিত্বে সিনিএই স্মরণ সভায় বক্তব্য রাখেন আমীর খসরু মাহমুদ চৌধুরী, শামসুজ্জামান দুদু,  জিয়া পরিষদের আবদুল্লাহিল মাসুদ, আব্দুল কুদ্দুস, মোহাম্মদ শফিকুল ইসলাম, লুৎফর রহমান, মওদুদ হোসেন, আলমগীর পাভেল, মাহফুজুর রহমান ফরহাদ, এমতাজ হোসেন, আবুল কালাম আজাদ, প্রয়াত কবীর মুরাদের স্ত্রী বেগম মমতাজ কবীর।

সিটি কর্পোরেশন নির্বাচনকে বিতর্কিত করতে চাইছে বিএনপি – হাছান

ঢাকা অফিস ॥ তথ্যমন্ত্রী ড. হাছান মাহমুদ ঢাকার আসন্ন দুই সিটি কর্পোরেশন নির্বাচন সম্পর্কে বিএনপি নেতাদের মন্তব্যকে হটকারি উল্লেখ করে এর সমালোচনা করে বলেছেন, নির্বাচনকে প্রশ্নবিদ্ধ করার বিএনপির প্রচেষ্টা গ্রহণযোগ্য নয়। গতকাল শনিবার রাজধানীর তেজগাঁয়ে চ্যানেল আই-এর একটি অনুষ্ঠানে অংশগ্রহণ শেষে তিনি সাংবাদিকদের এ কথা বলেন। তথ্যমন্ত্রী বলেন, ‘বিএনপি সিটি কর্পোরেশন নির্বাচনকে বিতর্কিত ও প্রশ্নবিদ্ধ করতে চাইছে, এটা মোটেই গ্রহণযোগ্য নয়। তারা সব সময়ই নির্বাচনকে বিতর্কিত করতে এবং মানুষের মাঝে বিভ্রান্তি সৃষ্টির লক্ষেই নির্বাচনে অংশ নেয়।’ মন্ত্রী বলেন, ‘আমি মনে করি, নির্বাচনকে প্রশ্নবিদ্ধ করার পরিবর্তে জয়লাভের উদ্দেশ্যেই বিএনপি’র নির্বাচনে অংশ নেয়া উচিৎ।’ এ সময় বিএনপি’র একজন কাউন্সিলর প্রার্থীর গ্রেফতার সম্পর্কে আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক হাছান বলেন, ‘যদি বিএনপি, আওয়ামী লীগ বা অন্য কোন দলের প্রার্থীর বিরুদ্ধে মামলা অথবা গ্রেফতারি পরোয়ানা থাকে, তবে, আইন-শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর সদস্যরা তাকে গ্রেফতার করতেই পারেন।’ সিটি নির্বাচন সম্পর্কে বিএনপি নেতৃবৃন্দের বিবৃতি সম্পর্কে মন্ত্রী বলেন, তাদের বিবৃতিতে আসন্ন সিটি নির্বাচনে বিএনপি’র পরাজয়ের বিষয়টিই উঠে এসেছে।’ তিনি আরো বলেন, ‘সিটি নির্বাচনকে প্রশ্নবিদ্ধ করা এবং চলমান গণতান্ত্রিক প্রক্রিয়াকে ব্যহত করাই বিএনপি’র প্রধান লক্ষ্য।’ তিনি আরো বলেন, বিএনপি’র অভিযোগগুলো উদ্দেশ্য প্রণোদিত ও সম্পূর্ণ ভিত্তিহীন। হাছান আরো বলেন, ‘বিএনপি জয়লাভ করার উদ্দেশ্যে নয়, নির্বাচনকে প্রশ্নবিদ্ধ করতেই নির্বাচনে অংশ নেয়। ২০১৮ সালের সাধারণ নির্বাচনে বিএনপি জয়লাভের জন্য অংশ নেয়নি। তারা নির্বাচনটিকে বিতর্কিত করতে চেয়েছিল। এখনও তারা তাই করছে।’ এর আগে, মন্ত্রী বেসরকারি টিভি চ্যানেল ‘চ্যানেল আই’ আয়োজিত দিনব্যাপী পিএলজি প্রকৃতি মেলা উদ্বোধন করেন।

দেশ এখন বিশ্বে উন্নয়নের রোল মডেল – তোফায়েল

ঢাকা অফিস ॥ আওয়ামী লীগের উপদেষ্টা পরিষদের সদস্য এবং ডাকসুর সাবেক ভিপি তোফায়েল আহমেদ বলেছেন, আওয়ামী লীগ সভাপতি ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার দক্ষ নেতৃত্বে দেশ এখন তলাবিহীন ঝুড়ি থেকে বিশ্বে উন্নয়নের রোল মডেলে পরিনত হয়েছে। তিনি বলেন, “প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার হাতে আমরা আওয়ামী লীগের পতাকা তুলে না দিলে বঙ্গবন্ধু হত্যা মামলার বিচার হতো না, যুদ্ধাপরাধীদের বিচার হতো না। শেখ হাসিনা শুধু দেশে নয়, তিনি আন্তর্জাতিক পর্যায়ের নেতা। ” তোফায়েল আহমেদ গতকাল ঐতিহাসিক সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে বাংলাদেশ ছাত্রলীগের ৭২তম প্রতিষ্ঠা বার্ষিকী উপলক্ষে পুনর্মিলনী অনুষ্ঠানে এ কথা বলেন। ছালীগের সভাপতি আল নাহিয়ান খান জয়ের সভাপতিত্বে এবং সাধারণ সম্পাদক লেখক ভট্টাচর্য্যরে পরিচালনায় এতে প্রধান অতিথির বক্তব্য রাখেন আওয়ামী লীগ সভাপতি ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি হিসাবে উপস্থিত ছিলেন আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক এবং সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের। বক্তব্যের শুরুতে ছাত্রলীগের সাবেক সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদকদের পরিচয় করিয়ে দেন আওয়ামী লীগের সভাপতিমন্ডলীর সদস্য জাহাঙ্গীর কবির নানক। এ সময় ছাত্রলীগের সাবেক সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদকদের মধ্যে খালেদ মোহাম্মদ আলী, শেখ শহীদুল ইসলাম, বাহালুল মজনুন চুন্নু, ডা. মোস্তাফা জালাল মহিউদ্দিন, খ. ম জাহাঙ্গীর, আবদুল মান্নান, সুলতান মুহাম্মদ মনসুর, আবদুর রহমান, শাহে আলম, অসীম কুমার উকিল, মঈনুদ্দীন হাসান চৌধুরী, ইকবালুর রহিম, এনামুল হক শামিম, ইসহাক আলী খান পান্না, বাহাদুর বেপারী, অজয়কর খোকন, লিয়াকত সিকদার, নজরুল ইসলাম বাবু, মাহমুদ হাসান রিপন, মাহফুজুল হায়দার চৌধুরী রোটন, এইচ এম বদিউজ্জামান সোহাগ, সাইফুর রহমান সোহাগ, এস এম জাকির হোসাইন প্রমুখ মঞ্চে উপস্থিত ছিলেন। তোফায়েল আহমেদ বলেন, প্রধানমন্ত্রী শুধু রাজনৈতিক নেতা নন, তিনি রাজনীতির সীমানা পেরিয়ে এখন রাষ্ট্রনায়ক। বঙ্গবন্ধু দেশ স্বাধীনের জন্য ছাত্রলীগ প্রতিষ্ঠা করেছিলেন। ছাত্রলীগ-আওয়ামী লীগ, বঙ্গবন্ধু এবং বাংলাদেশ একই সুত্রে গাথা। তিনি বলেন, জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের স্বপ্নের সোনার বাংলা প্রতিষ্ঠার জন্য প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা নিরলস কাজ করে যাচ্ছেন। ঐক্যবদ্ধভাবে শেখ হাসিনাকে আমাদের সহায়তা করতে হবে। আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের ছাত্রলীগ নেতা-কর্মীদের উদ্দেশ্যে বলেন, ছাত্রলীগে কোনো হত্যা মামলার আসামী এবং চাঁদাবাজের প্রয়োজন নেই। ছাত্রলীগকে বঙ্গবন্ধু ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার আদর্শ অনুসরন করে চলতে হবে। তিনি বলেন, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার দক্ষ নেতৃত্বে বাংলাদেশ আজ বিশ্বে মাথা উচু করে দাড়িয়েছে। ৪৪ বছরে একজন দক্ষ প্রশাসক, একজন দক্ষ কুটনীতিক এবং একজন সৎ রাজনীতিকের নাম শেখ হাসিনা। সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের বলেন, শেখ হাসিনা ১৯৮১ সালে দেশে না আসলে দেশের এতো উন্নয়ন হতো না, পদ্মাসেতু হতো না। সমুদ্র বিজয় ,মহাকাশ বিজয় হতো না। বঙ্গবন্ধু হত্যা মামলা এবং যুদ্ধাপরাধীদের বিচার হতো না। শেখ হাসিনার ম্যাজিক নেতৃত্বের কারণে দেশ এগিয়ে যাচ্ছে।

মিরপুরে শেষ হলো তিন দিনব্যাপি কৃষি মেলা

আমলা অফিস ॥ কুষ্টিয়ার মিরপুরে মুজিববর্ষ উপলক্ষে ৩ দিনব্যাপী কৃষি  মেলা শেষ হয়েছে। উপজেলা কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের উদ্যোগে বৃহত্তর কুষ্টিয়া ও যশোর অঞ্চল কৃষি উন্নয়ন প্রকল্পের আওতায় গতকাল শনিবার তিন দিনব্যাপি এ মেলার সমাপনী অনুষ্ঠান অনুষ্ঠিত হয়। এ উপলক্ষে দুপুরে উপজেলা কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের প্রশিক্ষণ হলে আলোচনা সভা ও পুরষ্কার বিতরণ করা হয়। উপজেলা সহকারী কমিশনার (ভূমি) রকিবুল হাসানের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্য রাখেন উপজেলা পরিষদের ভাইস-চেয়ারম্যান আবুল কাশেম  জোয়ার্দ্দার। উপ-সহকারী কৃষি কর্মকর্তা আব্দুল মালেকের পরিচালনায় বিশেষ অতিথির বক্তব্য রাখেন মিরপুর উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা রমেশ চন্দ্র ঘোষ, কুষ্টিয়া সদর উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা বিষ্ণুপদ সাহা,  ভেড়ামারা উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা সাইকুল ইসলাম, মিরপুর উপজেলা ভারপ্রাপ্ত প্রাণীসম্পদ কর্মকর্তা ডাঃ সোহাগ রানা, উপজেলা সহকারী কৃষি কর্মকর্তা অশোক কুমার কর্মকার প্রমুখ। সমাপনী অনুষ্ঠানে উপজেলার বিভিন্ন ইউনিয়নের কর্মরত উপ-সহকারী কৃষি কর্মকর্তাগণ, মডেল চাষী, মেলায় অংশগ্রহণকারী চাষীরা উপস্থিত ছিলেন। পরে মেলায় অংশ গ্রহণকারীদের মধ্যে পুরষ্কার বিতরণ করা হয়।

খোকসায় নদী ভাঙ্গন

ওসমানপুর আশ্রয়ন প্রকল্পসহ বিস্তিন্ন এলাকা হুমকীর মুখে

খোকসা প্রতিনিধি ॥ গড়াই নদীতে অসময়ে ভাঙ্গনে কুষ্টিয়ার খোকসা উপজেলার ওসমানপুর আশ্রয়ন প্রকল্প ও খোকসা শহর রক্ষা বাঁধ হুমকীর মুখে পরেছে। ভাঙ্গন কবলিত আশ্রয়ন প্রকল্পসহ নদী তীরের কয়েক’শ পরিবার আশ্রয়হীন হতে চলেছে। ইউএনও’র কম্বল নিলনা ভূমিহীনরা। পদ্মা নদীর অন্যতম প্রধান শাখা গড়াই নদী। নাব্যতা কমে যাওয়ায় নদীটির  খোকসা এলাকার বেশীর ভাগ অংশে চর পরে শুকিয়ে গেছে। কিন্তু শুষ্ক মৌসুম শুরু সাথে সাখে খোকসা উপজেলা সদরের বাজার রক্ষা বাঁধ ও ওসমানপুর আশ্রয়ন প্রকল্প এলাকায় ব্যাপক নদী ভাঙ্গন দেখা দেয়। গত দুই সপ্তাহে এ প্রকল্প ও কৃষকদের প্রায় ৫০ বিঘা জমি নদীগর্ভে বিলীন হয়ে যায়। নদী গর্ভে চলে গেছে গাছ গাছালি। বৃহস্পতিবার রাতের বৃষ্টিতে এ প্রকল্পের কমিউনিটি সেন্টারের নিচের মাটি নদীতে চলে গেছে। প্রায় ৫০ ফুট লম্বা টিন সেড পাকা ঘরটি নদীর মধ্যে ঝুলছে। যেকোন মুহুর্তে কমিউনিটি সেন্টারটি নদীতে বিলীন হয়ে যেতে পারে। নদী ভাঙ্গন কবলিত এ আশ্রয়ন প্রকল্পে ৩০টি ভূমিহীন পরিবারের কয়েকশ মানুষ বসবাস করছে। একইভাবে খোকসার শহর রক্ষা বাঁধের দুই পাশের চরে বসবাসকারী কয়েকশ পরিবার নদী ভাঙ্গনের কবলে পরেছেন। এসব পরিবারগুলো তিন যুগ আগে থেকে বাঁধটির দুই পাশের চরে বসবাস করে আসছে। নদী ভাঙ্গন দ্রুত ছড়িয়ে পড়ায় কয়েক হাজার মানুষ আশ্রয়হীন হয়ে পরার আশঙ্কা দেখা দিয়েছে। নদী ভাঙ্গন চরম আকার ধারণ করার পর থেকে উপজেলা প্রশাসনের কর্মকর্তারাসহ পানি উন্নয়ন বোর্ডের কর্মকর্তারা ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছেন। কিন্তু ভাঙ্গন রোধে বাস্তব কোন ব্যবস্থা নেওয়া হয়নি বলে আশ্রয়নের বসতিরা অভিযোগ করেন। শুক্রবার বিকালে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মৌসুমী জেরীন কান্তা ভাঙ্গন কবলিত ভূমিহীনদের জন্য কিছু সরকারী কম্বল দিতে গেলে ভুমিহীন নারীরা সে কম্বল প্রত্যাক্ষান করেন। ভাঙ্গন উপদ্রুত ওসমানপুর আশ্রয়ন প্রকল্প এলাকায় সরেজমিন গিয়ে বিভিন্ন বয়সীদের সাথে কথা হয়। নদী ভাঙ্গন সম্পর্কে আশ্রয়ন প্রকল্পের বসতী ভুমিহীন মনজুরা খাতুন, কাজলী খাতুনসহ অন্যরা জানান- তারা প্রায় ১৬ বছর ধরে এই প্রকল্পের ঘরে বসবাস করছেন। তাদের সরকার জমি ও ঘর দিয়েছে। এতদিন নদী ভাঙ্গন ছিল না। এ বছর নদীর পানি কমার সাথে সাথে ভাঙ্গন দেখা দেয়। শুরু থেকে তারা উপজেলার কর্মকর্তাদের সাথে দেখা করে। কর্মকর্তারা দফায় দফায় নদী ভাঙ্গন উপদ্রুত এলাকা পরিদর্শন করেছেন। কিন্তু নদী ভাঙ্গরোধে কোন ব্যবস্থা নেয়নি। ভূমিহীনরা অভিযোগ করেন- গত কয়েক বছর আগে থেকে শুষ্ক মৌসুমে এলাকার প্রভাবশালীরা আশ্রয়ন প্রকল্প এলাকায় নদীতে স্কিবিটার (মাটি কাটার মেশিন) নামিয়ে মাটি কাটে। আর এ কারনেই নদী ভাঙ্গন সৃষ্টি হয়েছে। নিজেদের থাকার ঘর নিয়ে শঙ্কার কথা জানালো স্কুল পড়–য়া ছাত্রী তন্নিমা খাতুন, ঋতু খাতুন, তমা খাতুন, ছাত্র ইমরান হোসেন। পানি উন্নয়ন বোর্ড কুষ্টিয়ার নির্বাহী প্রকৌশলী পিযুষ কৃষ্ণ কুন্ডু বলেন, গড়াই নদীর পানি প্রবাহ বেশী থাকায় ওসমানপুর আশ্রয়ন প্রকল্প এলাকায় ভাঙ্গন দেখা দিয়েছে। ভুক্তভোগীরা নদী থেকে বালু মাটি উত্তোলনের অভিযোগ করলেও এ কর্মকর্তা জানান, তাদের কাছে কেউ অভিযোগ করেনি। ভাঙ্গন রোধে জিও ব্যাগ ফেলার উদ্যোগ নেয়া হয়েছে। তবে কবে নাগাদ কাজ শুরু করা হবে তা বলেননি এ কর্মকর্তা। উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মৌসুমী জেরীন কান্তার সাথে কথা হলে তিনি বলেন- পানি উন্নয়ন বোর্ডের কর্মকর্তারা পর্যবেক্ষন করে গেছেন। এখন তারা প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেবেন।

ঝিনাইদহে অস্বাস্থ্যকর খোলা খাবার বিক্রি বন্ধে নাগরিক প্রচার অভিযানের সংবাদ সম্মেলন

ঝিনাইদহ প্রতিনিধি ॥ ঝিনাইদহে অস্বাস্থ্যকর খোলা খাবার বিক্রি বন্ধে নাগরিক প্রচার অভিযানের সংবাদ সম্মেলন অনুষ্ঠিত হয়েছে। শনিবার সকালে ওয়েল ফেয়ার এফোর্টস (উই) এর প্রশিক্ষণ কক্ষে এই সংবাদ সম্মেলন অনুষ্ঠিত হয়। এসময় জেলা এ্যাডভোকেসি কমিটির সভাপতি আমিনুর রহমান টুকুর সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে বক্তব্য রাখেন ডেমোক্রেসি ইন্টারন্যাশনালের প্রতিনিধি রোবায়েত হোসেন, রূপান্তর খুলনার প্রতিনিধি অসীম দাস, এ্যাডভোকেসি কমিটির সদস্য সুরাইয়া পারভীন মলি, ঝিনাইদহ প্রেসক্লাবের সভাপতি এম রায়হান, সাধারণ সম্পাদক মাহমুদ হাসান টিপুসহ অন্যান্যরা। অনুষ্ঠানটি পরিচালনা করেন জেলা এ্যাডভোকেসি কমিটির সাধারণ সম্পাদক ও ওয়েল ফেয়ার এফোর্টস (উই) এর পরিচালক শরিফা খাতুন। এসময় সংবাদ সম্মেলনে বিক্রেতাদের স্বাস্থ্যসম্মত প্রয়োজনীয় উপকরণ সরবরাহের ব্যবস্থা করা, ড্রেনের ধারে ও ড্রেনের উপরে কোন খাবার দোকান স্থাপন করতে না দেওয়া, ভোজ্য তেলের পুনঃ ব্যবহার বন্ধ করা, পথ খাবার বিক্রেতাদের নিবন্ধন, বিভিন্ন মোড়ে নিরাপদ পানি সরবরাহের ব্যবহার করাসহ বেশ কয়েকটি প্রস্তাবনা তুলে ধরা হয়।

৯ জেলায় “মানবতার কল্যাণ ফাউন্ডেশন” এর জন্ম উতসব

সমাজের অসহায়, অসুস্থ এবং সুবিধাবঞ্চিত মানুষের কল্যানে  নাট্যনির্মাতা জি এম সৈকত গঠন করেন একটি অরাজনৈতিক সমাজসেবামূলক সংগঠন “মানবতার কল্যাণ ফাউন্ডেশন”। গতকাল ছিল সংগঠনটির ১ম বর্ষ পূর্তি। কেন্দ্রীয় কমিটিসহ সারা বাংলাদেশে ৩টি বিভাগীয় শাখা, ৯টি জেলা শাখা ও ১৩টি উপজেলা শাখায় সংগঠনের সদস্যরা কেক কেটে জন্মদিন পালন করেন। গতকাল ঢাকায় কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে এক বর্ণাঢ্য অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়। অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি ছিলেন ফাউন্ডেশনের প্রধান পৃষ্ঠপোষক, ঢাকা রেঞ্জের ডিআইজি হাবিবুর রহমান। বিশেষ অতিথি ছিলেন ঢাকা বিভাগীয় কমিশনার (ভারপ্রাপ্ত) সংগঠনের উপদেষ্টা সেলিম রেজা, অতিরিক্ত সচিব, ডেসকোর পরিচালক, সংগঠনের উপদেষ্টা সাইফুল ইসলাম, রমনা জোনের ডিসি সাজ্জাদুর রহমান। অনুষ্ঠানের সভাপতিত্ব করেন ফাউন্ডেশনের  চেয়ারম্যান জি.এম সৈকত। অনুষ্ঠান উপস্থাপনা করেন ফাউন্ডেশনের মহাসচিব অভিনেত্রী অপ্সরা সুহি। সার্বিক তত্বাবধায়নে কেন্দ্রীয় অর্থ সম্পাদক, নাট্যকার ওসমান গনি বাবলা ও ঢাকা বিভাগীয় কমিটির সভাপতি বিশিষ্ঠ ব্যবসায়ী লুৎফর রহমান রিপন। অনুষ্ঠানের বিশেষ আকর্ষন ছিলেন জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার প্রাপ্ত অভিনেত্রী খালেদা আক্তার কল্পনা, জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার প্রাপ্ত অভিনেত্রী রেহানা জলি, টিভি অভিনেতা আব্দুল আজিজ, কন্ঠশিল্পি ইত্যাদি খ্যাত গায়ক আকবর, কন্ঠশিল্পি পলি সায়ন্তনী, নাট্য পরিচালক ও অভিনেতা আকাশ রঞ্জন, অভিনেত্রী আজরা  জেবিন তুলি, অভিনেত্রী শ্র“তি  খান, অভিনেত্রী সেজুতি ইসলাম সহ অসংখ্য শিল্পী এবং ফাউন্ডেশনের নেতৃবৃন্দরা। অনুষ্ঠানের প্রধান অতিথি ডিআইজি হাবিবুর রহমান বলেন- আমি শুরু থেকে আছি এবং সবসময় ভালো কাজের সাথে যুক্ত থেকে মানবতার কল্যান ফাউন্ডেশনের মাধ্যমে অসহায় মানুষের কল্যানে কাজ করে যাবো। অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথিসহ বিশেষ অতিথিবৃন্দরা মানবতার কল্যানে কাজ করার জন্য সংগঠনের প্রতিষ্ঠাতা জি.এম সৈকত ও মহাসচিব অপ্সরা সুহির পাশে থেকে সংগঠনকে আরো সামনের দিকে এগিয়ে নিয়ে যাওয়ার আশাবাদ ব্যক্ত করেন। সংবাদ বিজ্ঞপ্তি

দৌলতপুরে জাসদ ছাত্রলীগের প্রতিষ্ঠা বার্ষিকী পালন

দৌলতপুর প্রতিনিধি ॥ কুষ্টিয়ার দৌলতপুরে বাংলাদেশ ছাত্রলীগ (জাসদ) ৭২তম প্রতিষ্ঠা বার্ষিকী পালিত হয়েছে। গতকাল শনিবার বিকেল ৩টায় দৌলতপুর গার্লস হাই স্কুল চত্বরে সংক্ষিপ্ত আলোচনা ও কেক কেটে জাসদ ছাত্রলীগের প্রতিষ্ঠা বার্ষিকী পালন করা হয়। এ সময় উপস্থিত ছিলেন উপজেলা জাসদের সাধারণ সম্পাদক আশরাফুল ইসলাম নান্নু মাষ্টার, সাংগঠনিক সম্পাদক সাইদুর রহমান, যুগ্ন-সম্পাদক রকিবুল ইসলাম মাষ্টার, হাফিজুর রহমান মাষ্টার, আতিয়ার রহমান, উপজেলা যুবজোটের সভাপতি চাদ মাহমুদ, সাংগঠনিক সম্পাদক হাফিজুর রহমান তপন, উপজেলা ছাত্র লীগের সভাপতি সম্রাট আহমেদ ও সাধারণ সম্পাদক লিটন হোসেন প্রমুখ।

 

ঝিনাইদহে মাদক বিরোধী আলোচনা সভা ও শপথ বাক্য পাঠ

ঝিনাইদহ প্রতিনিধি ॥ ‘‘মাদককে রুখবো, বঙ্গবন্ধুর সোনার বাংলা গড়বো’’ এই প্রতিপাদ্য নিয়ে ঝিনাইদহে মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ অধিদপ্তরের মাদক বিরোধী আলোচনা সভা ও শপথ বাক্য পাঠ অনুষ্ঠিত হয়েছে। শনিবার সকালে সরকারি উচ্চ বিদ্যালয়ে এ আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়। এ সময় সরকারি উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক সেখ সফিয়ার রহমানের সভাপতিত্বে আলোচনা সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্য রাখেন অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (রাজস্ব) সেলিম রেজা, বিশেষ অতিথির বক্তব্য রাখেন জেলা শিক্ষা অফিসার সুসান্ত কুমার দেব, জেলা মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ অধিদপ্তরের সহকারি পরিচালক মোঃ আজিজুল হক। এসময় বক্তারা মাদকের কুফল ও প্রতিরোধে বিভিন্ন দিক নির্দেশনামূলক আলোচনা করেন। পরে বিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীদের শপথ বাক্য পাঠ করানো হয়।

নর্থ ওয়েস্টার্ন ইউনিভার্সিটিতে বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি অনুষদের ওরিয়েন্টেশন অনুষ্ঠিত

নর্থ ওয়েস্টার্ন ইউনিভার্সিটির বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি অনুষদের ¯িপ্রং-২০২০ সেমিস্টারের নবাগত শিক্ষার্থীদের ওরিয়েন্টেশন প্রোগ্রাম বিশ^বিদ্যালয়ের বিজ্ঞান ভবন মিলনায়তনে অনুষ্ঠিত হয়। অনুষ্ঠানের শুরুতেই নবীন শিক্ষার্থীদের ফুল দিয়ে বরণ করে নেওয়া হয়। বিশ্ববিদ্যালয়ের বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি অনুষদের ডীন প্রফেসর ড. মোঃ নওশের আলী মোড়লের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত নবীন বরণ অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির আসন অলঙ্কৃত করেন বিশ্ববিদ্যালয়ের মাননীয় ভাইস-চ্যান্সেলর প্রফেসর ড. তারাপদ ভৌমিক। বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন বিশ^বিদ্যালয়ের মাননীয় ট্রেজারার প্রফেসর সুধীর কুমার পাল ও রেজিস্ট্রার মোঃ শহীদুল ইসলাম। এছাড়া উপস্থিত ছিলেন বিভিন্ন বিভাগের প্রধানগণ, সহকারি প্রক্টর, শিক্ষকমন্ডলী ও শিক্ষার্থীবৃন্দ। পরিচিতি পর্বে সিএসই, ইইই ও সিভিল ইঞ্চিনিয়ারিং বিভাগের ৪ বছর মেয়াদি ও ৩ বছর মেয়াদি বিএসসি প্রোগ্রামের নবাগত ছাত্র-ছাত্রীদের জ্ঞাতার্থে বিশ্ববিদ্যালয়ের সার্বিক বিষয়গুলো তুলে ধরা হয়। ছাত্র-ছাত্রীদেরকে উচ্চ শিক্ষার সর্বোচ্চ এ বিদ্যাপিঠে লেখাপড়ার নিয়ম-শৃংখলা ও সার্বিক সুষ্ঠু পরিবেশ বজায় রেখে জ্ঞানার্জনের জন্য বিশেষ আহ্বান করা হয়। এছাড়াও শিক্ষার্থীরা যাতে তাদের দক্ষতার উৎকর্ষ সাধনে সচেষ্ঠ থাকতে পারে সে বিষয়ে শিক্ষকমন্ডলী দায়িত্বশীল ভূমিকা পালন করবেন বলে আশ^স্ত করা হয়। পাশাপাশি বিজ্ঞান, তথ্য-প্রযুক্তিভিত্তিক বর্তমান যুগের প্রেক্ষাপটে ছাত্র-ছাত্রীবৃন্দ প্রযুক্তি নির্ভর প্রকৃত শিক্ষা অর্জনের মাধ্যমে দক্ষ জনশক্তিতে পরিণত হয়ে দেশ ও জাতির কল্যাণে আত্মনিয়োগ করবে এবং ডিজিটাল বাংলাদেশ নির্মাণে দায়িত্বশীল ভূমিকা পালন করে প্রতিযোগিতামূলক বিশে^ এ দেশের ভাবমূর্তি উজ্জ্বল করবেÑএই আশাবাদ ব্যক্ত করেন বক্তারা। সংবাদ বিজ্ঞপ্তি

কুষ্টিয়ায় পেশাজীবী গাড়ী চালকদের কর্মশালায় বক্তারা

দক্ষ চালকরাই পারবে দুর্ঘটনামুক্ত বাংলাদেশ গড়তে

আরিফ মেহমুদ ॥ দুর্ঘটনার জন্য অন্যকে দোষারোপ করে লাভ নেই। গাড়ী চালানোর সময় সবার আগে একজন চালককেই সচেতন এবং সতর্ক হতে হবে। ড্রাইভিং সীটে বসে  জীবনের ঝুঁকি নিবেন না। চালকের সামান্য ভুলের জন্য বড় ধরনের মারাত্বক দুর্ঘটনা ঘটে অনেকগুলো জীবনহানী হতে পারে। আর এই দুর্ঘটনায় নিমিষেই সব শেষ। একটি পরিবারের স্বপ্ন ঘেরা সংসারে নেমে আসে অমানিশার অন্ধকার। অসহায় হয়ে পড়ে পরিবারের উপার্জনকারী ব্যক্তিটিকে হারিয়ে। এটি যে শুধু যাত্রীদের পরিবারের ক্ষেত্রে ঘটে তা কিন্তু নয়। ওই দুর্ঘটনায় গাড়ী চালকও নিহত হন। এক্ষেত্রে আপনাদের পরিবারটিও এতিম হয়ে যেতে পারে। দুর্ঘটনামুক্ত বাংলাদেশ গড়তে নিজেকে একজন প্রশিক্ষিত দক্ষ চালক হতে হবে। দক্ষ চালকরাই পারবে দুর্ঘটনামুক্ত বাংলাদেশ গড়তে। গতকাল শনিবার কুষ্টিয়া জেলা প্রশাসনের সহযোগিতায় এবং বিআরটিএ কুষ্টিয়া সার্কেলের আয়োজনে কুষ্টিয়া স্টেডিয়াম মিলনায়তনে পেশাজীবী গাড়ী চালকদের দক্ষতা ও সচেতনতা বৃদ্ধিমুলক দিনব্যাপী কর্মশালায় বক্তারা এসব কথা বলেন।

বক্তারা আরো বলেন, “সাবধানে গাড়ি চালান, জীবন ও সম্পদ বাঁচান”। মনে রাখবেন সময়ের চেয়ে জীবনের মূল্য অনেক বেশি। ড্রাইভিং করাকালীন সময়ে আপনার সতর্কতা ও দক্ষতা কমে যাবে দুর্ঘটনা, বেঁচে যাবে অনেক জীবন। কারন এর সাথে জড়িয়ে আছে পরিবারের অনেক স্বপ্ন। যাত্রীদের কাছে আপনি শুধু একজন চালক না হয়ে আস্থা ও ভরসার প্রতীক হয়ে উঠুন। বহির্বিশ্বের অনেক দেশের চেয়ে আমাদের দেশে যাত্রী সেবার মান, সড়ক যোগাযোগ ব্যবস্থা ও সড়ক নিরাপত্তা অনেক বেশি। তারপরও চালকদের সাহস আর অতিরিক্ত মনোবলের কারনে প্রায়ই ঘটছে সড়ক দূর্ঘটনার মত ঘটনা। অকাতরে ঝরছে প্রাণ। এখান থেকে আমাদের বেরিয়ে আসতে হবে।

বক্তারা বলেন, রাস্তার বাঁক, সরুব্রীজ ওভারটেকিং নিষিদ্ধ এলাকায় গাড়ীর গতি বেশি থাকায়, ট্রাফিক আইন, রোড সাইন মেনে না চলায় এবং সর্বপরী চালকের কানে হেড ফোন ও মোবাইলে কথা বলার কারনে এই দুর্ঘটনাগুলো ঘটছে। বক্তারা চালক ভাইদের প্রতি আহবান রেখে বলেন- আসুন  দুর্ঘটনামুক্ত বাংলাদেশ গড়তে গাড়ী চালানোর সময় আমরা সবাই সচেতন এবং সতর্ক হই। এক সাথে স্লোগান তুলি “সাবধানে গাড়ী চালান, জীবন ও সম্পদ বাঁচান”। কর্মশালায় সভাপতিত্ব ও যন্ত্রাংশ বিষয়ে বিস্তারিত তুলে ধরে স্বাগত বক্তব্য রাখেন বাংলাদেশ রোড ট্রান্সপোর্ট অথরিটি (বিআরটিএ)’র কুষ্টিয়া সার্কেলের মটরযান পরিদর্শক ওমর ফারুক। বিশেষ অতিথির বক্তব্য রাখেন কুষ্টিয়ার ট্রাফিক ইন্সপেক্টর ফখরুল আলম ও কুষ্টিয়া সিভিল সার্জন অফিসের মেডিকেল অফিসার ডাঃ রাকিবুল হাসান। শুভেচ্ছা বক্তব্য রাখেন বিআরটিএ কুষ্টিয়া সার্কেলের রাজস্ব কর্মকর্তা নাহিদুজ্জামান। অন্যান্যের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন কুষ্টিয়া জেলা মটর শ্রমিক ইউনিয়নের সাধারণ সম্পাদক আফজাল হোসেন, সাবেক সাধারণ সম্পাদক মোকাদ্দেস হোসেন, দৈনিক আন্দোলনের বাজার পত্রিকার সিনিয়র ষ্টাফ রিপোটার ও দৈনিক আলোকিত বাংলাদেশ পত্রিকার কুষ্টিয়া জেলা প্রতিনিধি এ.এইচ.এম.আরিফ, দৈনিক জনতার কুষ্টিয়া জেলা প্রতিনিধি শরীফ মাহমুদ, ট্রাক ও লরি  শ্রমিক ইউনিয়নের সাবেক সভাপতি ইউসুফ আলী প্রমুখ। “সাবধানে গাড়ি চালান, জীবন ও সম্পদ বাঁচান” এই শ্লোগানকে বাস্তবায়নে গাড়ী চালকদের অংশগ্রহনে ষ্টেডিয়াম থেকে সকালে একটি বর্ণাঢ্য র‌্যালী বের করা হয়। র‌্যালীটি কুষ্টিয়া-ঝিনাইদহ মহাসড়ক প্রদক্ষিন শেষে কর্মশালায় যোগদেন। মুল অনুষ্ঠানকে দুটি ভাগে বিভক্ত করে কর্মশালা সম্পন্ন করা হয়। প্রথমে র‌্যালী আলোচনা সভা এবং পরে পেশাজীবী গাড়ী চালকদের প্রশিক্ষণ দেয়া হয়। গাড়ী চালকবৃন্দ ট্রাফিক আইন, রোড সাইন মেনে না চলা এবং চালকের কানে হেড ফোন ও গাড়ী চালানোর সময় মোবাইল ফোনে কথা না বলা এই বক্তব্যের প্রতি সমর্থন জানিয়ে গাড়ী চালানোর সময় চালকরা মোবাইল ফোনে কথা বলবে না বলে অঙ্গীকার করেন। কর্মশালায় ১৫০ জন পেশাজীবী সহ বিভিন্ন সময় বিআরটিএ কুষ্টিয়া সার্কেল প্রায় ৬শত জন চালককে প্রশিক্ষণ প্রদান করেন।

নানা আয়োজনে মিরপুরে ছাত্রলীগের প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী পালিত

আমলা অফিস ॥ কুষ্টিয়ার মিরপুরে নানা আয়োজনের মধ্যদিয়ে পালিত হল বাংলাদেশ ছাত্রলীগের ৭২তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী। এ উপলক্ষে গতকাল শনিবার সকালে মিরপুর উপজেলা পরিষদ চত্ত্বরে এক র‌্যালি, মিরপুর উপজেলা আওয়ামী লীগের কার্যালয়ে আলোচনা সভা ও কেক কাটার আয়োজন করেন উপজেলা ছাত্রলীগ। মিরপুর উপজেলা ছাত্রলীগ নেতা আসলাম আরেফিনের নেতৃত্বে এক বর্ণাঢ্য র‌্যালি উপজেলা চত্ত্বর থেকে বের হয়ে শহরের প্রধান প্রধান সড়ক প্রদক্ষিণ শেষে উপজেলা আওয়ামী লীগের কার্যালয়ে আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়। সভায় প্রধান অতিথি হিসাবে বক্তব্য রাখেন মিরপুর উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারন সম্পাদক ও উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান কামারুল আরেফিন। বিশেষ অতিথির বক্তব্য রাখেন মিরপুর পৌর মেয়র এনামুল হক মালিথা, উপজেলা আ’লীগের সাবেক দপ্তর সম্পাদক রাশেদুজ্জামান ছন্দ প্রমুখ। এসময় উপস্থিত ছিলেন উপজেলা ছাত্রলীগের নেতাকর্মীরা। পরে ছাত্রলীগের ৭২তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকীর কেক কাটেন উপস্থিত নেতাকর্মীরা।

সোলেমানি হত্যা নিয়ে মার্কিন কংগ্রেসে বিভক্তি

ঢাকা অফিস ॥ যুক্তরাষ্ট্রের বিমান হামলায় ইরানের কুদস ফোর্সের শীর্ষ কমান্ডার কাসেম সোলেমানি নিহতের ঘটনা নিয়ে বিভক্তি দেখা দিয়েছে মার্কিন কংগ্রেসে। রিপাবলিকান ও ডেমোক্র্যাট শিবির একে অপরের বিপরীত প্রতিক্রিয়া দেখিয়েছে। রিপাবলিকানরা প্রেসিডেন্ট ডনাল্ড ট্রাম্পের প্রশংসায় হয়েছে পঞ্চমুখ। অন্যদিকে, ডেমোক্র্যাটরা সোলেমানির ওপর হামলার বৈধতা এবং এর পরিণতি নিয়ে উদ্বেগ প্রকাশ করেছে। শুক্রবার ভোরে মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডনাল্ড ট্রাম্পের নির্দেশে ইরাকের বাগদাদ আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরের কাছে ড্রোন হামলায় নিহত হন ইরানের প্রভাবশালী কমান্ডার সোলেমানিসহ সাতজন। যুক্তরাষ্ট্রের প্রতিরক্ষা সদরদপ্তর পেন্টাগনের দাবি, “ইরাক এবং ওই অঞ্চলে আমেরিকান কূটনীতিক এবং মার্কিন বাহিনীর সদস্যদের ওপর হামলা ছক কষছিলেন সোলেমানি। তাছাড়া, সোলেমানির কুদস ফোর্স শত শত মার্কিন সেনা এবং কোয়ালিশন বাহিনীর সদস্য হতাহতের ঘটনার জন্যও দায়ী।” ফলে পেণ্টাগনের কথায়, সোলেমানিকে হত্যার উদ্দেশ্য ছিল যুক্তরাষ্ট্রকে ইরানের ভবিষ্যৎ হামলা থেকে বাঁচানো আর  এর মধ্য দিয়ে তেহরানের ওপরও অনেক বেশি চাপ সৃষ্টি করতে পেরেছে মার্কিন প্রশাসন। সাউথ ক্যারোলাইনার রিপাবলিকান সিনেটর লিন্ডসে গ্রাহাম ইরানি আগ্রাসনের বিরুদ্ধে ‘ট্রাম্প সাহসী পদক্ষেপ নিয়েছেন’ বলে এক টুইটে এর প্রশংসা করেছেন। আরো কয়েকজন রিপাবলিকান আইনপ্রণেতা প্রেসিডেন্ট ট্রাম্পের প্রশংসা করে বলেছেন, তিনি বহু আমেরিকান সেনার পরিবারের প্রতি ন্যায়বিচার করেছেন। “সোলেমানির মৃত্যুতে ইরাক এখন ইরানের নিয়ন্ত্রণমুক্ত হয়ে নিজেদের ভবিষ্যৎ নিজেরাই নির্ধারণ করার সুযোগ পাবে” বলে মন্তব্য করেছেন রিপাবলিকান সিনেটর  জিম রিখ। আরেকজন রিপাবলিকান সোলেমানিকে যুক্তরাষ্ট্রের শক্র আখ্যা দিয়ে তার হাত আমেরিকানদের রক্তে রঞ্জিত বলে মন্তব্য করেছেন। ওদিকে, মার্কিন প্রতিনিধি পরিষদের ডেমোক্র্যাট স্পিকার ন্যান্সি পেলোসি বলছেন, কংগ্রেসের সঙ্গে কথা না বলেই বিমান হামলা চালানো হয়েছে। এক বিবৃতিতে তিনি বলেন, “আমেরিকার নেতারা সবচেয়ে বেশি অগ্রাধিকার দেন মার্কিন নাগরিক এবং দেশের স্বার্থকে। কিন্তু তাই বলে আমরা অযাচিত এবং উস্কানিমূলক কর্মকান্ড করে মার্কিন সেনা সদস্য, কূটনীতিকসহ অন্যান্যদের জীবনকে ঝুঁকিতে ফেলতে পারি না।” “আজকের এ বিমান হামলায় সহিংসতা বিপজ্জনকভাবে বেড়ে যাওয়ার ঝুঁকি সৃষ্টি হয়েছে।” মার্কিন হামলার পরিণতি কী হবে তা নিয়ে উদ্বেগ প্রকাশ করেছেন বেশির ভাগ ডেমোক্র্যাট। নিউ মেক্সিকোর সিনেটর টম উডাল বলেছেন, “প্রেসিডেন্ট ট্রাম্প কংগ্রেসের তোয়াক্কা না করেই আমাদের দেশকে অযাচিতভাবে ইরানের সঙ্গে যুদ্ধের দ্বারপ্রান্তে নিয়ে যাচ্ছেন। অথচ যুক্তরাষ্ট্রের সংবিধান মোতাবেক এ ব্যাপারে কংগ্রেসের অনুমোদন নেওয়া জরুরি ছিল।” “বেপরোয়া এ কর্মকান্ডের মধ্য দিয়ে প্রেসিডেন্ট যুক্তরাষ্ট্রের বাহিনী এবং নাগরিকদেরকে বিপদের মুখে ঠেলে দিচ্ছেন এবং দেশকে মধ্যপ্রাচ্যে আরেকটি বিপর্যয়কর যুদ্ধে নিমজ্জিত করছেন, যা আমেরিকার জনগণ চায় না এবং সমর্থনও করে না।”

যুদ্ধ ঠেকাতেই সোলেমানিকে হত্যা, শুরু করতে নয় – ট্রাম্প

ঢাকা অফিস ॥ মধ্যপ্রাচ্যে আরেকটি যুদ্ধ শুরু করতে নয়, উল্টো যুদ্ধ ঠেকাতেই যুক্তরাষ্ট্র ইরানের শীর্ষ সামরিক কমান্ডার কাসেম সোলেমানিকে হত্যা করেছে বলে দাবি করেছেন মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডনাল্ড ট্রাম্প। শুক্রবার বাগদাদ বিমানবন্দরে হামলায় সোলেমানির ‘সন্ত্রাসের রাজত্ব শেষ হয়েছে’ বলেও মন্তব্য করেছেন এ রিপাবলিকান। ফ্লোরিডার অবকাশযাপন কেন্দ্র মার-আ-লগোতে এক সংবাদ সম্মেলনে ট্রাম্প এসব বলেছেন বলে জানিয়েছে বিবিসি। কাসেম সোলেমানিকে মারা হয়েছে ‘যুদ্ধ ঠেকাতে, আরেকটি শুরু করতে নয়’, ভাষ্য মার্কিন প্রেসিডেন্টের। “বিশ্বের এক নম্বর সন্ত্রাসী কাসেম সোলেমানিকে হত্যায় মার্কিন সেনাবাহিনী নির্ভুল অভিযান চালিয়েছে। মার্কিন কূটনীতিক এবং সামরিক কর্মকর্তাদের ওপর ভয়াবহ ও নির্মম হামলার পরিকল্পনা করছিল সোলেমানি; কিন্তু আমরা তাকে ধরে ফেলি ও সরিয়ে দিই,” বলেন ট্রাম্প। মধ্যপ্রাচ্যে ইরানের প্রভাববৃদ্ধির পেছনে দেশটির কুদস ফোর্সের শীর্ষ নেতা সোলেমানির ভূমিকা ব্যাপক বলে ধারণা আন্তর্জাতিক বিশে¬ষকদের। ৬২ বছর বয়সী এ জেনারেলকে হত্যার ‘ভয়ঙ্কর বদলা’ নেয়ার হুঁশিয়ারি দিয়েছে তেহরান। শুক্রবার বাগদাদ বিমানবন্দরে ওই হামলার ঘটনা মধ্যপ্রাচ্য ঘিরে উত্তেজনা আরও বাড়াবে বলে অনুমান করা হচ্ছে। যুক্তরাষ্ট্র এরই মধ্যে ওই অঞ্চলে আরও ৩ হাজার সেনা পাঠানোর ঘোষণা দিয়েছে। ইরাকের রাষ্ট্রীয় টেলিভিশন সোলেমানিকে হত্যার ২৪ ঘণ্টার মধ্যে মিলিশিয়া বাহিনীর কনভয়ে ফের বিমান হামলার খবর দিয়েছে। বাগদাদের উত্তরে ক্যাম্প তাজির কাছে ওই হামলায় ইরানপন্থি পপুলার মোবিলাইজেশন ফোর্সের (পিএমএফ) ৬ জন নিহত হয়েছে বলে ইরাকি সেনাবাহিনীর একটি সূত্রের বরাত দিয়ে বার্তা সংস্থা রয়টার্স জানিয়েছিল। তবে টুইটারে শনিবারের হামলার দায় অস্বীকার করেছেন ইরাকে মার্কিন নেতৃত্বাধীন জোটের মুখপাত্র কর্নেল মাইলস ক্যাগিনস থ্রি। “সাম্প্রতিক দিনগুলোতে মার্কিন নেতৃত্বাধীন জোট ক্যাম্প তাজির কাছে কোনো ধরনের বিমান হামলা চালায়নি,” বলেছেন তিনি।

 

রিটার্নিং কর্মকর্তাকে তাবিথ-ইশরাকের নালিশ

ঢাকা অফিস ॥ ঢাকা উত্তর ও দক্ষিণ সিটি করপোরেশন নির্বাচনের প্রচার শুরুর আগেই ক্ষমতাসীনদের বিরুদ্ধে অভিযোগ করেছেন বিএনপির দুই মেয়র প্রার্থী। উত্তরে আওয়ামী লীগের মেয়র প্রার্থী আতিকুল ইসলামের বিরুদ্ধে আচরণবিধি লঙ্ঘনের অভিযোগ এনেছেন তার প্রতিদ্বন্দ্বী বিএনপি প্রার্থী তাবিথ আউয়াল। দক্ষিণে বিএনপি সমর্থিত কাউন্সিলর প্রার্থীদের হয়রানি করা হচ্ছে বলে অভিযোগ তুলেছেন দলটির মেয়র প্রার্থী ইশরাক হোসেন। গতকাল শনিবার দুই রিটার্নিং কর্মকর্তার কাছে লিখিত অভিযোগ জমা দিয়ে ভোটে সবার জন্য সমান সুযোগ তৈরির দাবি জানান তারা। রিটার্নিং কর্মকর্তারা অভিযোগ খতিয়ে দেখার আশ্বাস দিয়েছেন। আগামী ৩০ জানুয়ারি অনুষ্ঠেয় ঢাকার দুই সিটি করপোরেশন নির্বাচনে প্রচার শুরু হবে ৯ জানুয়ারি প্রতীক বরাদ্দের পর। শনিবার বিকালে ইটিআই ভবনে উত্তরের নির্বাচনের রিটার্নিং কর্মকর্তা আবুল কাসেমের কাছে তাবিথ আউয়ালের লিখিত অভিযোগ জমা দেন তার প্রতিনিধি জুলহাস উদ্দিন। অভিযোগনামায় তাবিথ বলেন, শনিবার ৮ থেকে ৯টার মধ্যে ক্ষমতাসীন দলের প্রার্থী নির্বাচনী এলাকার গুলশান পার্কে দলীয় নেতা-কর্মী ও সমর্থকদের সঙ্গে নিয়ে একটি নির্বাচনী মঞ্চ করে, মাইক ও সাউন্ড সিস্টেম ব্যবহার করে ভোট চেয়ে বক্তব্য দেন, যা আচরণবিধির লঙ্ঘন। অভিযোগের পক্ষে কিছু আলোকচিত্রও রিটার্নিং কর্মকর্তাকে দেন তিনি। নির্বাচনী বিধি সবার জন্য সমভাবে প্রযোজ্য হবে বলে ইসির আশ্বাস রিটার্নিং কর্মকর্তাকে মনে করিয়ে দিয়ে তাবিথ বলেন, “কিন্তু আইন প্রয়োগকারী সংস্থা বা কোনো নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট এই বিধিমালা লঙ্ঘনকারী প্রার্থীকে আইনের আওতায় আনার চেষ্টাও করেনি।” সবার জন্য সমান সুযোগ তৈরির আহ্বান জানিয়ে বিএনপির প্রার্থী বলেন, তা নাহলে ইসি জনগণের আস্থা অর্জন করতে পারবে না। এ বিষয় রিটার্নিং কর্মকর্তা আবুল কাসেম সাংবাদিকদের বলেন, “অভিযোগটি পেয়েছি। সংশ্লিষ্ট এলাকার নির্বাহী হাকিমের কাছে এ অভিযোগটি পাঠাবো। খতিয়ে দেখে প্রতিবেদন পেলেই প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেওয়া হবে।” ভোটের আগে কাউন্সিলর প্রার্থীদের হুমকি, গ্রেপ্তার এবং হয়রানির বিষয়ে অভিযোগ জানিয়ে ‘গায়েবি মামলায়’ গ্রেপ্তারি পরোয়ানা নিয়ে চিন্তিত বলে জানিয়েছেন দক্ষিণের বিএনপির মেয়রপ্রার্থী ইশরাক হোসেন। শনিবার দুপুরে ঢাকা দক্ষিণ সিটি কর্পোরেশন নির্বাচনের রিটার্নিং কর্মকর্তার কার্যালয়ে লিখিত অভিযোগ দেন তিনি। ইশরাক বলেন, বিএনপি সমর্থিত ৩২ নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর প্রার্থী তাজউদ্দিন আহমেদ তাজুর প্রার্থিতা বৈধ প্রার্থী হওয়ার পর সাদা পোশাকের আইনশৃঙ্খলা বাহিনী গ্রেপ্তার করে। “অথচ কিছু দিন আগে তিনি জামিন নিয়ে কারাগার থেকে বের হয়েছেন। প্রশ্ন হল- তাকে তখন গ্রেপ্তার দেখানো হয়নি কেন?” ৪৪ নং ওয়ার্ডের বিএনপি সমর্থিত কাউন্সিলর প্রার্থী আবদুস সাহেদ মন্টুকে একই ওয়ার্ডের আওয়ামী লীগ প্রার্থী সরে দাঁড়ানোর হুমকি দিচ্ছেন বলে অভিযোগ করেন ইশরাক। তিনি বলেন, বিএনপি কাউন্সিলর প্রার্থীদেরকে ভয়ভীতি ও আতঙ্ক সৃষ্টিকরে নির্বাচনের সুষ্ঠু পরিবেশ ব্যাহত করার পাঁয়তারা চলছে। অভিযোগ পেয়ে দক্ষিণের রিটার্নিং কর্মকর্তা আবদুল বাতেন সাংবাদিকদের বলেন, “অভিযোগ আমরা গ্রহণ করলাম এবং এ বিষয়ে প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ নেব।” তিনি বলেন, “আমরা সংশ্লিষ্টদের বলব, অতি উৎসাহী হয়ে কোনো কাজ করা যাবে না। পুরনো মামলায় কাউকে গ্রেপ্তার না করতে আমাদের কাছে অনুরোধ করা হয়েছে। নির্বাচন যাতে কোনোভাবে প্রশ্নবিদ্ধ না হয় সেই বিষয়ে আমরা সতর্ক আছি।”

রাজনীতিতে বিভেদের দেয়াল সৃষ্টি করা হয়েছিল – ওবায়দুল কাদের

ঢাকা অফিস ॥ আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক এবং সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের বলেছেন, পঁচাত্তরের ১৫ আগস্ট জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানকে সপরিবারে হত্যার মধ্যদিয়ে রাজনীতিতে বিভেদের দেয়াল সৃষ্টি করা হয়েছিল। গতকাল শনিবার ডিপ্লোমা ইঞ্জিনিয়ার্স ইনষ্টিটিউশন মিলনায়তনে জাতীয় পার্টির (জেপি) ত্রি-বার্ষিক সম্মেলনে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এ কথা বলেন। আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক বলেন, পঁচাত্তরের ১৫ আগষ্ট বঙ্গবন্ধুকে হত্যার পরে তৎকালীন সরকার বঙ্গবন্ধুর খুনিদের পুরস্কৃত করেছিল। তাদের বিদেশে পালিয়ে যেতে সুযোগ করে দিয়েছিল। দূতাবাসে চাকরি দিয়েছিল। ইনডেমনিটি জারি করে বঙ্গবন্ধুর খুনিদের বিচার বন্ধ করে দিয়েছিল। রাজনীতিতে বিভেদের দেয়াল সেখান থেকেই সৃষ্ঠি হয়েছে। তিনি বলেন, রাজনীতিতে আজ সৌজন্যবোধ বিরল। দেশের রাজনীতিতে খুবই খারাপ সময় চলছে,এখানে ষড়যন্ত্রের গন্ধ পাওয়া যাচ্ছে। ওবায়দুলকাদের বলেন, গণতন্ত্রকে শক্তিশালী করতে হলে বিরোধী দলকে শক্তিশালী হতে হবে। শক্তিশালী বিরোধী দল ছাড়া শক্তিশালী গণতন্ত্র হয় না। এটা আমাদের মনে রাখতে হবে। তিনি বলেন, আওয়ামী লীগ সরকার যখন কিছু আসন সংকটে ছিল, সে সময় আওয়ামী লীগের পাশে এসে দাঁড়িয়েছিল জাতীয় পার্টি-জেপি। ওবায়দুল কাদের বলেন, জাতীয় পার্টি দু:সময়ে আওয়ামী লীগের পাশে থেকে সাম্প্রদায়িক অপশক্তিকে প্রতিহত করতে আমাদের সঙ্গে ঐক্যবদ্ধ আন্দোলন করেছিল। আজ আমরা একসঙ্গে কাজ করেছি। এ ধারা অব্যাহত রাখতে হবে। তিনি বলেন, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার পক্ষ থেকে জাতীয় পার্টি-জেপি নেতাকর্মীদের উদ্দেশ্যে এই কথা বলতে চাই-আসুন আমরা এক সঙ্গে সাম্প্রদায়িক অপশক্তির বিরুদ্ধে লড়াই করি। বঙ্গন্ধুর স্বপ্নের সোনার বাংলা বিনির্মাণে কাজ করি। আওয়ামী লীগ সভাপতিমন্ডলীর সদস্য ও কেন্দ্রীয় ১৪ দলের মুখপাত্র মোহাম্মদ নাসিম বিএনপির উদ্দেশ্যে বলেন, সিটি কর্পোরেশন নির্বাচনকে বিতর্কিত করবেন না। নির্বাচনের মাঝপথে পালিয়ে যাবেন না। ফলাফল ঘোষণা না হওয়া পর্যন্ত নির্বাচনের মাঠে থাকবেন। জাতীয় পাটির্ (জেপি) নেতা-কর্মীদের উদ্দেশে তিনি বলেন, ঢাকাকে পরিস্কার-পরিচ্ছন্ন শহরে পরিনত করতে ঐক্যবদ্ধ হয়ে আওয়ামী লীগ মনোনিত প্রার্থীকে ভোট দিন। জাতীয় পার্টি -জেপি চেয়ারম্যান আনোয়ার হোসেন মঞ্জুর সভাপতিত্বে সম্মেলনে জাতীয় সমাজতান্ত্রিক দল (জাসদ) সভাপতি হাসানুল হক ইনু, সাম্যবাদী দলের সাধারণ সম্পাদক দিলীপ বড়ুয়া, জেপির মহাসচিব শেখ শহীদুল ইসলাম প্রমুখ বক্তব্য রাখেন। এর আগে জেপি চেয়ারম্যান আনোয়ার হোসেন মঞ্জু জাতীয় এবং দলের সাধারণ সম্পাদক শেখ শহীদুল ইসলাম দলীয় পতাকা উত্তোলনের মধ্য দিয়ে সম্মেলন উদ্বোধন করেন।

মানবাধিকার রক্ষা ও সুশাসন নিশ্চিতে জনস্বার্থের মামলা গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখে – প্রধান বিচারপতি

ঢাকা অফিস ॥ প্রধান বিচারপতি সৈয়দ মাহমুদ হোসেন বলেছেন, জনগণের মানবাধিকার রক্ষা, সুশাসন ও সরকারের জবাবদিহিতা নিশ্চিতে জনস্বার্থের মামলা গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখে। গতকাল শনিবার সুপ্রিমকোর্ট অডিটোরিয়ামে সুপ্রিমকোর্ট অনলাইন বুলেটিন (স্কব) আয়োজিত জনস্বার্থে মামলা নিয়ে এক সেমিনারে প্রধান অতিথির বক্তৃতায় তিনি এ কথা বলেন। ‘স্ট্যান্ডিং ইন পাবলিক ইন্টারেস্ট লিটিগেশন : অ্যান আউটলাইন’ শীর্ষক এ সেমিনারে মূল প্রবন্ধ উপস্থানপন করেন হাইকোর্ট বিভাগের বিচারপতি ও স্কব এডিটর বিচারপতি মইনুল ইসলাম চৌধুরী। সুপ্রিমকোর্টের বিচারপতিদের উপস্থিতিতে আলোচনায় অংশ নেন আপিল বিভাগের বিচারপতি মোহাম্মদ ইমান আলী এবং হাইকোর্ট বিভাগের বিচারপতি সৈয়দ রেফাত আহমেদ ও বিচারপতি শেখ হাসান আরিফ। প্রধান বিচারপতি বলেন, সুবিধাবঞ্চিত ও পিছিয়ে পড়া জনগণের মানবাধিকার রক্ষায় জনস্বার্থের মামলা এখন সহায়ক ভূমিকা রাখছে। মানবাধিকার বিষয়ক বিচার ব্যবস্থায় জনস্বার্থের মামলা দেশীয় মডেল হিসেবে বিচার বিভাগকে এগিয়ে নিতে সহায়তা করে। তিনি বলেন, ১৯৯৬ সালে ড. মহিউদ্দিন ফারুক বনাম বাংলাদেশ মামলা দিয়ে বাংলাদেশ সুপ্রিমকোর্ট জনস্বার্থ মামলার বিষয়ে বিচারিক ভূমিকার পরিধি বাড়ানোর যাত্রা শুরু করে। জনস্বার্থ মামলায় জনগণের মঙ্গলের জন্য আইন ও ন্যায় বিচারের মাধ্যমে বিচার বিভাগের সক্ষমতা কাজে লাগাতে হবে বলে মনে করেন প্রধান বিচারপতি। আইন ও নীতিনির্ধারণী কৌশল প্রণয়নসহ বিচারবিভাগের ওপর জনগণের আস্থা ধরে রাখতে জনস্বার্থে মামলার গুরুত্ব তুলে ধরেন প্রধান বিচারপতি। বিচারপতি মইনুল ইসলাম চৌধুরী মূল প্রবন্ধে জনস্বার্থ মামলার বিবর্তন তুলে ধরেন। সংক্ষুব্ধ ব্যক্তি এবং মামলা করার আইনগত অধিকার নিয়ে বৃটিশ ও ভারতের উচ্চ আদালতের বিভিন্ন সিদ্ধান্ত তুলে ধরেন তিনি। বিচারপতি মইনুল ইসলাম চৌধুরী বলেন, মৌলিক অধিকার ও সাংবিধানিক অধিকার প্রাপ্তির পথে মামলা করার আইনসঙ্গত অধিকার একটি গুরুত্বপূর্ণ বিষয়। জনস্বার্থ মামলায় সংক্ষুব্ধ ব্যক্তির সংজ্ঞা নির্ধারণ এবং মামলা করার আইনসঙ্গত অধিকার নির্ণয়ে সুপ্রিমকোর্টের ইতিবাচক অবস্থান বিভিন্ন মামলার সূত্র উল্লেখ করে তুলে ধরেন তিনি। তিনি বলেন, উচ্চ আদালতে বিচারিক সক্রিয়তার ফলে জনগণ জনস্বার্থ মামলায় প্রতিকার পাচ্ছেন।