চ্যানেল আই প্রকৃতি মেলা উপলক্ষ্যে কুষ্টিয়ায় বর্ণাঢ্য র‌্যালী

নিজ সংবাদ ॥ প্রকৃতি ও জীবন ফাউন্ডেশনের উদ্যোগে চ্যানেল আই প্রকৃতি মেলা-২০২০ আজ ৪ জানুয়ারি অনুষ্ঠিত হবে চ্যানেল আই চেতনা চত্বরে। চ্যানেল আই প্রকৃতি মেলার সাফল্য কামনা করে সারাদেশের ন্যায় কুষ্টিয়াতেও বর্ণাঢ্য র‌্যালী ও আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়েছে। গতকাল শুক্রবার বৈরী আবহাওয়া উপেক্ষা করে সকাল ১০টায় প্রকৃতি প্রেমীরা জড় হয় কুষ্টিয়া পৌরসভার বিজয় উল্লাস চত্বরে। সেখান থেকে এক বর্ণাঢ্য র‌্যালী বের হয়। র‌্যালীটি কুষ্টিয়া শহরের প্রধান প্রধান সড়ক প্রদক্ষিণ করে। চ্যানেল আই কুষ্টিয়া প্রতিনিধি আনিসুজ্জামান ডাবলুর সঞ্চালনায় র‌্যালী পূর্ব  পৌর বিজয় উল্লাস চত্বরে এক সংক্ষিপ্ত আলোচনা সভায় বক্তৃতা করেন পরিবেশবাদী রোটারিয়ান প্রকৌশলী নজরুল ইসলাম, রাজনীতিবিদ কারশেদ আলম, সনাক প্রতিনিধি মিজানুর রহমান লাকী, ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয়ের কর্মকর্তা সমিতির যুগ্ম সম্পাদক রাশিদুজ্জামান খান টুটুল, প্রথমআলো কুষ্টিয়া প্রতিনিধি তৌহিদী হাসান শিপলু, সমকাল প্রতিনিধি সাজ্জাদ হোসেন, কুষ্টিয়া প্রেসক্লাবের যুগ্ম সম্পাদক শরীফ বিশ্বাস, কোষাধ্যক্ষ এম জুবায়েদ রিপন, ক্রীড়া ও সমাজকল্যাণ সম্পাদক আ ফ ম নুরুল কাদের, ক্রীড়া সংগঠক রেজাউল করিম আরজু। অনুষ্ঠানে কৃষিবিদ, পরিবেশবাদী সংগঠনের নেতৃবৃন্দ ও গণমাধ্যম কর্মীরা উপস্থিত ছিলেন।

বুড়িগঙ্গায় নৌযান ডুবে ঘুমন্ত ৪ শ্রমিকের মৃত্যু

ঢাকা অফিস ॥ নারায়ণগঞ্জে বুড়িগঙ্গা নদীতে বালি পরিবহনে ব্যবহৃত একটি নৌযান (বাল্কহেড) ডুবে ঘুমন্ত চার শ্রমিকের মৃত্যু হয়েছে। গতকাল শুক্রবার ভোরে ফতুল্লার ধর্মগঞ্জ খেয়াঘাট এলাকায় বুড়িগঙ্গা নদীতে এ দুর্ঘটনা ঘটে বলে ফায়ার সার্ভিসের ডিউটি অফিসার লিমা খানম জানান। খবর পেয়ে নারায়ণগঞ্জ ফায়ার সার্ভিসের ডুবুরিরা নদীতে তল্লাশি চালিয়ে চারজনের লাশ উদ্ধার করে। নিহতরা হলেন- ঝালকাঠির নলছিটির কান্দেবপুর এলাকার তৈয়ব আলীর ছেলে লুৎফর রহমান (৩৯), পিরোজপুরের কাউখালীর চাষেরকাঠি এলাকার আব্দুর রব তালুকদারের ছেলে মোস্তফা মিয়া (৫৫), পিরোজপুরের বটবাড়ির ছোট আরজি এলাকার রাশেদ হাওলাদারের ছেলে বাবু হাওলাদার (১৮) ও বরিশালের বানারিপাড়ার ইলুহার এলাকার মহিবুল্লাহ (৬০)। এমভি তসলিম-১ নামের ওই নৌযানের মাস্টার আমির হোসেনসহ দুজন সাঁতরে তীরে উঠতে পারায় প্রাণে বেঁচে যান। মাস্টারের বরাত দিয়ে ফতুল্লার বিসিক শিল্পনগরী ফায়ার সার্ভিসের সিনিয়র স্টেশন অফিসার মোহাম্মদ কাজল মিয়া বলেন, রাত আড়াইটার দিকে ধর্মগঞ্জ খেয়াঘাট এলাকায় নদীতে বাল্কহেডটি নোঙ্গর করা হয় মেরামত করার জন্য। “কাজ শেষে শ্রমিকরা ইঞ্জিন রুমে ঘুমিয়ে পড়েছিল। নৌযানে কোনো ছিদ্র ছিল, যেটা তারা বুঝতে পারেনি। পানি ঢুকছে বুঝতে পেরে মাস্টারসহ দুজন বেরিয়ে এসে সাঁতরে তীরে ওঠেন। কিন্তু বাকি চারজন ভেতরে আটকা পড়ে।” ফতুল্লা মডেল থানার পরিদর্শক মিজানুর রহমান বলেন, ওই বাল্কহেডের সঙ্গে অন্য কোনো নৌযানের সংঘর্ষের কোনো খবর তারা পাননি। ঘটনাটি দক্ষিণ কেরানীগঞ্জ থানা এলাকায় হওয়ায় নিহত চারজনের লাশ উদ্ধারের পর ওই থানায় নিয়ে যাওয়া হয়।

 

সিটি নির্বাচনে সমন্বয়কের দায়িত্ব পেলেন আমু-তোফায়েল

ঢাকা অফিস ॥ ঢাকার দুই সিটি কর্পোরেশন নির্বাচনে দলীয় প্রার্থীর পক্ষে কাজ করার মৌখিক দায়িত্ব পেলেন আওয়ামী লীগের প্রবীণ নেতা আমির হোসেন আমু ও তোফায়েল আহমেদ। গতকাল শুক্রবার রাজধানীর বঙ্গবন্ধু অ্যাভিনিউয়ে আওয়ামী লীগ কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে দলের কেন্দ্রীয় কার্যনির্বাহী সংসদ ও উপদেষ্টা পরিষদের সদস্যদের নিয়ে অনুষ্ঠিত এক যৌথসভায় বর্ষীয়ান এই দুই নেতাকে মৌখিক দায়িত্ব দেয়া হয়। সভায় উপস্থিত নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক আওয়ামী লীগের সম্পাদকমন্ডলীর একজন সদস্য বলেন, আনুষ্ঠানিকভাবে দলের পক্ষ থেকে কোনো কমিটি করা হয়নি। তবে নেত্রী (আওয়ামী লীগ সভাপতি শেখ হাসিনা) আমাদের দলের দুই প্রবীণ নেতাকে সিটি কর্পোরেশন নির্বাচনে দলীয় প্রার্থীর পক্ষে কাজ করতে বলেছেন। আমরা যদি কোনো কমিটি করি সেটা শনিবার জানানো হবে। ওই নেতার দেয়া তথ্য অনুযায়ী, আওয়ামী লীগের উপদেষ্টা পরিষদ সদস্য আমির হোসেন আমুকে ঢাকা দক্ষিণ সিটি কর্পোরেশন ও তোফায়েল আহমেদকে উত্তর সিটি কর্পোরেশন নির্বাচনে দলীয় প্রার্থীর পক্ষে কাজ করার মৌখিক দায়িত্ব দিয়েছেন আওয়ামী লীগ সভাপতি শেখ হাসিনা। আওয়ামী লীগের একাধিক নেতার সঙ্গে কথা বলে জানা গেছে, ঢাকা উত্তর সিটি কর্পোরেশন নির্বাচন পরিচালনা কমিটিতে সদস্য সচিব হিসেবে থাকতে পারেন ঢাকা মহানগর উত্তর শাখার সাধারণ সম্পাদক এস এম মান্নান কচি। ঢাকা দক্ষিণ সিটি কর্পোরেশন নির্বাচন পরিচালনা কমিটিতে সদস্য সচিব থাকতে পারেন ঢাকা মহানগর দক্ষিণ আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক হুমায়ুন কবির। দলীয় সূত্র জানায়, ঢাকার দুই সিটি নির্বাচনে মেয়র পদে নৌকার প্রার্থী ও কাউন্সিলর পদে দল সমর্থিত প্রার্থীদের বিজয় নিশ্চিত করতে নির্বাচন পরিচালনা কমিটির সদস্য সংখ্যা এখনো চূড়ান্ত করা হয়নি। কেন্দ্রীয় কমিটি ও উপদেষ্টা পরিষদের যারা যারা কাজ করতে আগ্রহী, তাদের অন্তর্ভুক্ত করা হবে কমিটিতে।

সাতক্ষীরায় ‘বন্দুকযুদ্ধে’ ১৩ মামলার আসামি নিহত

ঢাকা অফিস ॥ সাতক্ষীরা সদর উপজেলায় পুলিশের সঙ্গে কথিত বন্দুকযুদ্ধে ১৩ মামলার এক আসামি নিহত হয়েছে। উপজেলার মাটিয়াডাঙ্গা দামারপোতা এলাকায় বৃহস্পতিবার গভীররাতে গোলাগুলির ওই ঘটনা ঘটে বলে জেলা পুলিশের বিশেষ শাখার পরিদর্শক মো. মিজানুর রহমান জানান। নিহত জাকির হোসেন (৪০) মাটিয়াডাঙ্গা গ্রামের কওসার আলির ছেলে। পুলিশ বলছে, তার বিরুদ্ধে হত্যা, চোরাচালান, ঘের দখল ও ডাকাতির ১৩টি মামলা রয়েছে। পরিদর্শক মিজানুর বলেন, ঘটনাস্থলে একদল ডাকাত ডাকাতির প্রস্তুতি নিচ্ছে খবরে ঘটনাস্থলে অভিযান চালায় পুলিশ। এ সময় ডাকাতরা পুলিশকে লক্ষ্য করে গুলি করলে পুলিশও পাল্টা গুলি করে। “দুই পক্ষর গোলাগুলির মধ্যে জাকিরের গুলি লাগলে ঘটনাস্থলেই তার মৃত্যু হয়।” এছাড়া ঘটনাস্থল থেকে একটি বিদেশী পিস্তল জব্দ করা হয়েছে বলেও জানান এ পুলিশ কর্মকর্তা।

সৈয়দ আশরাফ রাজনীতিবিদদের জন্য অনুকরণীয় আদর্শ – ওবায়দুল কাদের

ঢাকা অফিস ॥ আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক এবং সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের বলেছেন, সৈয়দ আশরাফুল ইসলাম রাজনীতিবিদদের জন্য অনুকরণীয় আদর্শ। তার ত্যাগ-তিতিক্ষা জাতির কাছে স্মরণীয় হয়ে থাকবে। তিনি বলেন, ‘আমাদের দেশের একজন বিরল রাজনীতিবিদ সৈয়দ আশরাফ। বঙ্গবন্ধুর ঘনিষ্ঠ সহযোগী সৈয়দ নজরুল ইসলাম এর এই সুযোগ্য পুত্র আমাদের পার্টির পর পর দু’বার সাধারণ সম্পাদক ছিলেন। বাংলাদেশের রাজনীতিবিদদের জন্য সৈয়দ আশরাফুল ইসলাম অনুকরণীয় দৃষ্টান্ত।’ আওয়ামী লীগের সাবেক সাধারণ সম্পাদক সৈয়দ আশরাফুল ইসলামের প্রথম মৃত্যুবার্ষিকী উপলক্ষে গতকাল শুক্রবার বনানীতে তার কবরে দলের পক্ষ থেকে শ্রদ্ধা নিবেদন শেষে ওবায়দুল কাদের এসব কথা বলেন। আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক বলেন, ‘৭৫ পরবর্তী সময়ে সৈয়দ আশরাফ অনেক ত্যাগ স্বীকার করেছেন। বাংলাদেশের রাজনৈতিক পরিবেশে একজন পারফেক্ট ম্যান ছিলেন সৈয়দ আশরাফ।’ ওবায়দুল কাদের বলেন, তার জীবন থেকে আমাদের সকলেরই শিক্ষা নেওয়ার আছে। সৈয়দ আশরাফুল ইসলামের ন¤্রতা, সততা ও বিনয় ভবিষ্যত রাজনীতিকদের জন্য অনুকরণীয় দৃষ্টান্ত। তিনি বলেন, আমি মনে করি তার প্রথম মৃত্যুবার্ষিকী তখনই সার্থক হবে যদি আমরা তার মতো আচরণে বিনয়ী, ন¤্র এবং বাস্তব জীবনে তার মতো সৎ হতে পারি। আজ সৈয়দ আশরাফের প্রতি বিন¤্র শ্রদ্ধা জানানো হচ্ছে, এখান থেকে আমাদের ভবিষ্যৎ প্রজন্ম শিক্ষা নিতে পারবে। এসময় সৈয়দ আশরাফুল ইসলামের পরিবারের পক্ষ থেকে দেশবাসীর কাছে দোয়া প্রার্থনা করেন তার বোন কিশোরগঞ্জ-১ আসনের সংসদ সদস্য ডা. সৈয়দা জাকিয়া নূর।

কুষ্টিয়া পৌরসভার সহযোগিতায় জাতীয় ররীন্দ্র সঙ্গীত সম্মিলন পরিষদ’র আলোচনা সভা ও সাংস্কৃতি অনুষ্ঠান

গতকাল শুক্রবার সন্ধায় কুষ্টিয়া পৌরসভার সহযোগিতায় আলোচনা সভা ও রবীন্দ্র সন্ধ্যা অনুষ্ঠিত হয়েছে। জাতীয় রবীন্দ্র সঙ্গীত সম্মিলন পরিষদ, কুষ্টিয়া জেলা শাখার আয়োজনে এই অনুষ্ঠান অনুষ্ঠিত হয়। ইসলামী বিশ^বিদ্যালয়ের কলা অনুষদ’র ডীন ড. সরওয়ার মুর্শেদ রতন’র সভাপতিত্বে আলোচনা সভায় প্রধান অতিথি ছিলেন কুষ্টিয়া পৌরসভা উন্নয়নের রূপকার ও জননন্দিত মেয়র আনোয়ার আলী। প্রধান অতিথির বক্তব্যে মেয়র বলেন-  পৌর এলাকার কবি আজিজুর রহমান সড়কে অবস্থিত রবিন্দ্র স্মৃতিবিজড়িত মিলপাড়াস্থ লেগর লজ (কুষ্টিয়া কুঠিবাড়ী) কুষ্টিয়া শহরের একমাত্র রবীন্দ্রচর্চা কেন্দ্র। এই লেগর লজে রবীন্দ্র প্রেমিরা দেশ-বিদেশ থেকে এক নজর দেখতে আসেন। আজ সুইডেন’র লুন্ডু ইন্টারন্যাশনাল টেগোর কয়ার নামক একটি সাংস্কৃতিক দল এখানে গান পরিবেশন করছেন। তিনি আরো বলেন, রবীন্দ্রনাথ শুধু বাংলাদেশ আর ভারত বর্ষের মধ্যেই সীমাবন্দ নয়। বিশে^ও বিভিন্ন দেশে রবীন্দ্রনাথের লেখা কবিতা ও গান বিশ^বাসী তাদের নিজের ভাষায় উপস্থাপন করছে। আজ এই টেগর লজে সেটা দৃশ্যমান। আলোচনা সভায় স্বাগত বক্তব্য রাখেন জাতীয় রবীন্দ্রসঙ্গীত সম্মিলন পরিষদ কুষ্টিয়া জেলা শাখার সাধারণ সম্পাদক ড. আকলিমা খাতুন ইরা, কেন্দ্রিয় জাতীয় রবীন্দ্র সঙ্গীত সম্মিলন পরিষদ’র সদস্য অশোক সাহা, সুইডেন’র লুন্ডু ইন্টারন্যাশনাল টেগোর কয়ার টিম লিডার  বুবু মুনসি একলুন্ড, সুইডেন থেকে আগত লর্স একলুন্ড কয়ার’র চেয়ারপারসন। এছাড়াও উপস্থিত ছিলেন কুষ্টিয়ার সিনিয়র জেলা ও দায়রা জজ অরূপ কুমার গোস্বামী, অতিরিক্ত জেলা ও দায়রা জজ তৌহিদুল ইসলাম, অতিরিক্ত চিফ জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট রেজাউল করিম সহ বিভিন্ন সাংস্কৃতিক সংগঠনের শিল্পিবৃন্দ এবং স্থানীয় গন্যমান্য ব্যক্তিবর্গ। গান পরিবেশন করেন সুইডেন থেকে আগত টেগর কয়ার’র শিল্পিবৃন্দ। অনুষ্ঠানটি পরিচালনা করেন প্রবাল খন্দকার। উল্লেখ্য অনুষ্ঠান শুরুর আগে রবীন্দ্রনাথের আবক্ষমূর্তিতে পুষ্পমাল্য অর্পন করেন অতিথিবৃন্দ। সংবাদ বিজ্ঞপ্তি

 

দলের কেন্দ্রীয় কার্যনির্বাহী সংসদ এবং উপদেষ্টা পরিষদের যৌথসভায় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা

সুসংগঠিত দল সফলভাবে সরকার পরিচালনার জন্য সহায়ক

ঢাকা অফিস ॥ প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা আওয়ামী লীগকে সুসংগঠিত রাখার ওপর গুরুত্বারোপ করে দলের নেতা-কর্মীদের উদ্দেশ্যে বলেছেন, একটি সরকার সফলভাবে পরিচালনার জন্য দলকে সুসংগঠিত রাখা জরুরী। প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘একটি সরকার সফলভাবে কাজ করতে পারবে তখনই যখন তার পেছনে দল সুসংগঠিত থাকে। কারণ দল সুসংগঠিত থাকলে তা একটা সরকারের জন্য বিরাট শক্তি।’ প্রধানমন্ত্রী এবং আওয়ামী লীগ সভাপতি গতকাল শুক্রবার সকালে রাজধানীর ২৩ বঙ্গবন্ধু অ্যাভেনিউস্থ আওয়ামী লীগ কার্যালয়ে গত ২১ ডিসেম্বর একুশতম জাতীয় কাউন্সিলে নির্বাচিত দলের কেন্দ্রীয় কার্যনির্বাহী সংসদ এবং উপদেষ্টা পরিষদের প্রথম যৌথসভার প্রারম্ভিক ভাষণে একথা বলেন। দলের সকল কার্যনির্বাহী সদস্য এবং উপদেষ্টা পরিষদ সদস্যদের অংশগ্রহণে অনুষ্ঠিত সভায় সভাপতিত্ব করেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। তিনি বলেন, ‘দলের শক্তিটাই সবথেকে বেশি কাজে লাগে একটা দেশকে উন্নত করতে। যেটা আমি নিজে উপলদ্ধি করি এবং যে কারণে আমি সংগঠনের ওপর সব থেকে বেশী গুরুত্ব¡ দেই।’ শেখ হাসিনা এ সময় আওয়ামী লীগ এবং এর সকল সহযোগী সংগঠনের সম্মেলন শেষ করে একে শক্তিশালী করে গড়ে তোলার ওপর গুরুত্বারোপ করেন। তিনি বলেন, আমাদেরকে মনে রাখতে হবে ২০২০ সাল বাংলাদেশের জন্য সবথেকে গুরুত্বপূর্ণ একটি বছর। কারণ এটা হচ্ছে জাতির পিতার জন্ম শতবার্ষিকী। ১৯২০ সালে তাঁর জন্ম, মনে হয় তাঁর জন্মটাই হয়েছিল বাঙালিকে জাতি হিসেবে একটা আত্মপরিচয় এনে দেওয়ার জন্য এবং একটি জাতি রাষ্ট্র গড়ে তোলার জন্য। তিনি এ সময় জনগণের কাছে কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করে বলেন, ‘বাংলাদেশের জনগণের কাছে কৃতজ্ঞতা জানাই কেননা তাঁদের আস্থা ও বিশ্বাস না থাকলে আমরা এই সুযোগটা পেতাম না। জানি না কি হতো, ইতিহাস বিকৃত করে তাঁর (জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান) নামটাইতো মুছে ফেলার ষড়যন্ত্র করা হয়েছিল।’ তিনি বলেন, ‘দেশের জনগণ আমাদেরকে ২০০৮ সালে ভোট দিয়ে নির্বাচিত করেছে। আমরা সরকারে আসতে পেরেছি বলেই রাষ্ট্রীয় মর্যাদায় জাতির পিতার জন্ম শতবার্ষিকী এবং ২০২১ সালে স্বাধীনতার সুবর্ণ জয়ন্তী রাষ্ট্রীয়ভাবে উদযাপন করার সুযোগ পেয়েছি।’ শেখ হাসিনা বলেন, তাঁর সরকারের সৌভাগ্য হলো-১৯৯৭ সালে স্বাধীনতার রজত জয়ন্তী উদযাপনকালেও আওয়ামী লীগ ক্ষমতায় ছিল। শেখ হাসিনা বলেন, ‘২৩ বছরের সংগ্রাম এবং ৯ মাসের রক্তক্ষয়ী যুদ্ধের মধ্যদিয়ে লাখো প্রাণের বিনিময়ে যে স্বাধীনতা, সেটা ব্যর্থ হতে পারে না। সেটা প্রমাণ করাই আমাদের লক্ষ্য।’ ‘সেটা যে আমরা প্রমাণ করতে পেরেছি, সেটা আমি দ্ব্যর্থহীন কন্ঠে বলতে পারবো। কিন্তু সেটা আমাদের ধরে রাখতে হবে,’যোগ করেন তিনি। দলের ক্রান্তিলগ্নে তৃণমূল আওয়ামী লীগের ভূমিকার কথা উল্লেখ করে শেখ হাসিনা বলেন, ‘দলের তৃণমূল পর্যায়ের নেতা-কর্মীরা সব সময় সঠিক সিদ্ধান্ত নেয়। নিজেদের জীবন বিপন্ন করেই তারা এই সংগঠনকে ধরে রেখেছে।’ তিনি বলেন,‘আমাদের নেতাকর্মীদের ওপর অনেক অত্যাচার-নির্যাতন হয়েছে। কোনো জুলুম-নির্যাতনে-নিপীড়নে আওয়ামী লীগকে ধ্বংস করা যায়নি ।’ প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘আজকে বাংলাদেশে আওয়ামী লীগ একটা শক্তিশালী দল। এদেশের রাজনীতিতে কেউ যদি কিছু শিখিয়ে থাকে সেটা আওয়ামী লীগই প্রতিষ্ঠা লগ্ন থেকে করে যাচ্ছে। এই ঐতিহ্য আমাদের ধরে রাখতে হবে। ’ ১৯৭৫ সালে জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানকে নির্মম ভাবে সপরিবারে হত্যার প্রসংগ তুলে ধরে শেখ হাসিনা বলেন, ‘উদ্দেশ্য একটাই ছিল যে এমন ভাবে আওয়ামী লীগকে শেষ করে দেওয়া, যেন কোনদিন এই সংগঠন ক্ষমতায় আসতে না পারে। অথবা রাষ্ট্রপরিচালনার দায়িত্ব নিতে না পারে।’ দেশের সংকটকালে আওয়ামী লীগের সভাপতির দায়িত্ব নেয়ার প্রেক্ষাপট স্মরণ করে শেখ হাসিনা বলেন, ‘১৯৮১ সালে যখন দলের দায়িত্ব নিই তখন এই চিন্তা মাথায় ছিল না যে, কোনো কিছু হতে হবে বা পেতে হবে। শুধু দেশের জন্য কাজ করে যেতে চেয়েছি।’ দীর্ঘ ’২১ বছর পর আওয়ামী লীগের পুণরায় সরকার গঠনের কথা উল্লেখ করে তিনি বলেন, ‘অনেক ঘাত প্রতিঘাত, চড়াই উৎরাই পেরিয়ে আমরা ’৯৬ সালে সরকার গঠন করি। বাংলাদেশের জনগণ প্রথম আশার আলো দেখতে পান, তারা প্রথম দেখতে পান যে, সরকার জনগণের সেবক। মানুষ প্রথম উপলব্ধি করে সরকার জনগণের সেবা করে।’ টানা তিন বারের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেন, ‘আমাদের এগারো বছর পূর্ণ হলো এক টানা। মুক্তিযুদ্ধের সময় অনেকে বলেছিল- বাংলাদেশ স্বাধীন হয়ে কি হবে, বটমলেস বাস্কেট হবে। আজকে তারা সে কথা বলতে পারবে না। বরং আজকে বাংলাদেশ উন্নয়নের রোল মডেল।’ শেখ হাসিনা বলেন, ‘বাংলাদেশের উন্নয়নের ক্ষেত্রে আমরা যে দৃষ্টান্ত স্থাপন করতে পেরেছি, সেটা শুধু আমাদের এখানেই না, বিশ্বব্যাপী খুবই সমাদৃত এবং স্বীকৃত।’ ব্যাপক ভাবে মুজিব বর্ষ উদযাপনে প্রসংগে বঙ্গবন্ধু কন্যা বলেন, ‘১০ জানুয়ারি জাতির পিতার স্বদেশ প্রত্যাবর্তন দিবস থেকে আমরা কাউন্টডাউন শুরু করে ১৭ই মার্চ জাতির পিতার জন্মশতবার্ষিকী উপলক্ষে আমরা মুজিব বর্ষ উদযাপন শুরু করবো। বছর ব্যাপী সারাদেশে অনুষ্ঠান করবো।’ ‘মুজিব বর্ষ’কে সামনে রেখে নবউদ্যোমে সামনে এগিয়ে যাওয়ার কথা উল্লেখ করে আওয়ামী লীগ সভাপতি বলেন, ‘এই অনুষ্ঠানের মধ্যে দিয়ে আমরা আবার নবউদ্যোমে জাতির পিতার দেয়া এই বাংলাদেশকে আরও উন্নত করবো, স্বাধীনতাকে আমরা আরও অর্থবহ করবো, যেন বাংলাদেশের মানুষ বিশ্বে যেন মর্যাদা নিয়ে চলতে পারে। এখন যে মর্যাদা পেয়েছে এর চেয়ে আরও বেশি মর্যাাদা নিয়ে আরও উন্নত দেশ হিসেবে বাংলাদেশ যেন গড়ে উঠতে পারে সেটাই আমাদের লক্ষ্য। সে লক্ষ্য নিয়ে আমরা কাজ করে যাবো’। বক্তব্যের শুরুতে শেখ হাসিনা প্রয়াত সাবেক সাধারণ সম্পাদক সৈয়দ আশরাফুল ইসলামের কথা স্মরণ করেন। প্রথম মৃত্যুবার্ষিকী উপলক্ষ্যে এই যৌথ সভা সৈয়দ আশরাফুল ইসলামের স্মৃতির প্রতি উৎসর্গ করা হয়। কিছুক্ষণ চলার পর এদিনের সভা আগামীকাল শনিবার সন্ধ্যা ৬ টায় পর্যন্ত মুলতবি করা হয়। আওয়ামী লীগের দপ্তর সম্পাদক ব্যারিস্টার বিপ্লব বড়ুয়া গণমাধ্যমকে জানান, দলের নতুন কেন্দ্রীয় কার্যনির্বাহী সংসদ ও উপদেষ্টা পরিষদের প্রথম যৌথসভার মূলতবি সভা আজ সন্ধ্যা ৬টায় গণভবনে অনুষ্ঠিত হবে।

৩৬৫ দিন অজেয় লিভারপুল

ক্রীড়া প্রতিবেদক ॥ মৌসুমের শুরু থেকে দুর্দান্ত ফর্মে এগিয়ে চলা লিভারপুল নতুন বছরের শুরুটাও করল একই ছন্দে। শেফিল্ড ইউনাইটেডকে হারিয়ে প্রিমিয়ার লিগে ৩৬৫ দিন অপরাজিত থাকার কীর্তি গড়েছে ইয়ুর্গেন ক্লপের দল। অ্যানফিল্ডে বৃহস্পতিবার রাতে ২-০ গোলে জিতেছে স্বাগতিকরা। মোহামেদ সালাহর গোলে লিভারপুল এগিয়ে যাওয়ার পর দ্বিতীয়ার্ধে ব্যবধান দ্বিগুণ করেন সাদিও মানে। লিগে সবশেষ লিভারপুল হেরেছিল গত বছর ৩ জানুয়ারি, ম্যানচেস্টার সিটির মাঠে ২-১ গোলে। তিন দশকের খরা কাটিয়ে লিগ শিরোপা জয়ের স্বপ্নে এগিয়ে চলা লিভারপুল ম্যাচের শুরুতেই গোল পেয়ে যায়। ভার্জিল ফন ডাইকের নিখুঁত ক্রস নিয়ন্ত্রণে নিয়ে বাঁ দিক থেকে ডি-বক্সে বল বাড়ান অ্যান্ডি রবার্টসন। সঙ্গে লেগে থাকা ডিফেন্ডারকে পরাস্ত করে প্রথম ছোঁয়ায় ঠিকানা খুঁজে নেন সালাহ। আসরে এটি তার দশম গোল। দ্বাদশ মিনিটে ব্যবধান দ্বিগুণ হতে পারতো। তবে সালাহর শটটি অসাধারণ নৈপুণ্যে ক্রসবারের ওপর দিয়ে পাঠিয়ে দেন গোলরক্ষক। খানিক পর মিশরের এই ফরোয়ার্ডের আরেকটি শট রুখে দেন গোলরক্ষক ডিন হেন্ডারসন। ৬০তম মিনিটে ভাগ্যের জোরে দ্বিতীয় গোল খাওয়া থেকে বেঁচে যায় শেফিল্ড। সালাহর চিপ শটে হেড করার চেষ্টায় ব্যর্থ হন ফন ডিক। বল বাইরে চলে যাচ্ছে ভেবে ডিফেন্ডার ও গোলরক্ষক কেউ ঠেকানোর চেষ্টাই করেননি, শেষ মুহূর্তে বল পোস্টে বাধা পায়। পাঁচ মিনিট পর ব্যবধান দ্বিগুণ করেন মানে। বাঁ দিক দিয়ে আক্রমণে উঠে সালাহর সঙ্গে বল দেওয়া-নেওয়া করে শট নেন সেনেগালের এই ফরোয়ার্ড। গোলরক্ষক ঠেকানোর পর আলগা বল অনায়াসে জালে ঠেলে দেন তিনি। আসরে এটি তার একাদশ গোল। ২০ ম্যাচে ১৯ জয় ও এক ড্রয়ে ৫৮ পয়েন্ট লিভারপুলের। ১৩ পয়েন্ট কম নিয়ে দুইয়ে আছে এক ম্যাচ বেশি খেলা লেস্টার সিটি। তিনে থাকা ম্যানচেস্টার সিটির পয়েন্ট ৪৪। ৩৬ পয়েন্ট নিয়ে চতুর্থ স্থানে আছে চেলসি। পাঁচে থাকা ম্যানচেস্টার ইউনাইটেডের পয়েন্ট ৩১।

স্বস্তিকার স্ট্যাটাস নিয়ে শোরগোল

বিনোদান বাজার ॥ নাম স্বস্তিকা হোক বা শবনম কিংবা রাজিয়া। যে নামই হোক না কেন, তিনি যেমন এখনো এ দেশের মানুষ, নাম পাল্টে গেলেও এ দেশের নাগরিকই থাকবেন। তিনি যেমন প্রতিদিন খেটে নিজের খাবার জোগাড় করেছন, নাম পাল্টে গেলেও সেই একই কাজই করবেন। সম্প্রতি এভাবেই সোশ্যাল সাইটে নিজের মত প্রকাশ করেন স্বস্তিকা মুখোপাধ্যায়।

সোশ্যাল হ্যান্ডেলে নিজের মত প্রকাশ করে কার্যত শোরগোল ফেলে দিয়েছেন টলিউডের এই প্রথম সারির অভিনেত্রী। সোশ্যাল সাইটে নিজের মতবাদ প্রকাশের সঙ্গে নিজের রাজনৈতিক মতাদর্শকেও স্পষ্ট করেন স্বস্তিকা। অভিনেত্রীর সোশ্যাল স্ট্যাটাস প্রকাশ্যে আসার পরই তা ভাইরাল হয়ে যায় হু হু করে। পাশাপাশি স্বস্তিকার ওই স্ট্যাটাস প্রকাশ্যে আসার পর শুরু হয় বিতর্ক ও সমালোচনাও। নেটিজেনদের একাংশের তরফে জোরদার কটাক্ষ করা হয় তাকে। যদিও কটাক্ষ বা সমালোচনা, কোনো কিছুকেই গায়ে মাখেননি অভিনেত্রী। তবে তার ওই স্ট্যাটাস থেকে কেউ কেউ প্রশংসাও শুরু করে দেন অভিনেত্রীর।

২০২০ সালে বলিউডে মুক্তি প্রতীক্ষিত ছবি

বিনোদান বাজার ॥ গেল বছর বলিউড ফিল্ম ইন্ডাস্ট্রিকেও ওয়েবের ধকল সইতে হয়েছে। সিনেমাহলে ছবি মুক্তি দিয়ে সুবিধা করতে পারেনি কোনো ছবি।

বছরের শেষ দিকে ‘দাবাং থ্রি’ মুক্তির প্রথম সপ্তাহে একশ কোটি রুপির ক্লাবে পা রাখলেও দ্বিতীয় সপ্তাহে ছবিটির পথচলা শ্লথ হয়ে যায়। এর কারণ ওয়েব সিরিজ। ওয়েব মাধ্যমে নিত্য নতুন সিরিজগুলোর আগমনে সিনেমাহলে দর্শকদের ভিড় তেমন আর লক্ষ্য করা যায় না। এসব ওয়েব সিরিজে অভিনয়ও করেন বলিউডের বড় বড় তারকা।

এতকিছুর পরও নতুন বছর বিগ বাজেটের কিছু ছবি মুক্তির জন্য প্রস্তুত করছে প্রযোজকরা। তার মধ্যে অন্যতম হচ্ছে দীপিকা পাড়ুকোনের ‘ছ্যাপাক’। বছরের শুরুতেই এ ছবি নিয়ে এক ভিন্ন লুকে দর্শকের সামনে হাজির হচ্ছেন এ নায়িকা।

এসিডদগ্ধ লক্ষ্মী আগারওয়াল এর জীবনে ঘটে যাওয়া সত্য ঘটনা অবলম্বনে নির্মিত এ ছবিতে লক্ষ্মীর চরিত্রে দেখা যাবে দীপিকা পাড়ুকোনকে। ছবিটি ১০ জানুয়ারি মুক্তি পাবে। পাশাপাশি একই দিনে মুক্তি পাবে অজয় দেবগন, কাজল ও সাইফ আলী খান অভিনীত ঐতিহাসিক গল্প নিয়ে নির্মিত ছবি ‘তানজি : অ্যান আনসাং ওয়ারিয়র’। এ ছবির মধ্য দিয়ে দীর্ঘদিন পর অজয়-কাজল দম্পতিকে একসঙ্গে দেখা যাবে।

চলতি মাসে বরুণ ধাওয়ান এবং শ্রদ্ধা কাপুরকে আবারও দেখা যাবে একসঙ্গে। নাচের গল্প নিয়ে নির্মিত ‘স্ট্রিট ড্যান্সার’ নামে একটি ছবিতে এ জুটি থ্রি ডাইমেনশনে উপস্থিত হবেন। বলিউডের ব্যবসা সফল ছবির নির্মাতা রোহিত শেঠির ‘পুলিশ অফিসার’-এর সিক্যুয়ালে আবারও পুলিশ হয়ে পর্দায় আসছেন অক্ষয় কুমার।

মার্চে মুক্তি প্রতীক্ষিত ‘সুরাইয়াবানসি’ ছবিতে পুলিশ রূপে দেখা মিলবে এ নায়কের। এ ছবিটি নিয়ে পরিচালক অনেক আত্মবিশ্বাসী। এ বছর ১৯৮৩ সালে ভারতের বিশ্বকাপ ক্রিকেট জয়ের গল্প নিয়ে নির্মিত ‘এইট্টি থ্রি’ ছবিতে একসঙ্গে দেখা যাবে রণবীর সিং ও দীপিকা পাড়ুকোনকে।

এপ্রিলে মুক্তিপ্রাপ্ত এ ছবিতে রণবীরকে দেখা যাবে ভারতের প্রখ্যাত ক্রিকেটার কপিল দেবের চরিত্রে। চলতি বছরের শেষে চমক দিতে পর্দায় আসবেন মি. পারফেকশনিস্টখ্যাত অভিনেতা আমির খান। ১৯৯৪ সালে মুক্তিপ্রাপ্ত হলিউড সুপার স্টার টম হাঙ্কস অভিনীত ‘ফরেস্ট গাম্প’-এর রিমেক গল্পে নির্মিত ‘লাল সিং চদ্দা’ নামে ছবিতে দেখা মিলবে আমিরের। এ ছাড়া রয়েছে অমিতাভ বচ্চনের ছবি। নাম ‘গুলাবো-সিতাবো’।

এ ছবি শুটিংয়ের সময় টুইটারে এক পোস্টের অমিতাভ লিখেছেন- ‘অনেক হল, এবার বিশ্রাম দরকার।’ মূলত অভিনয় থেকে বিদায় জানানোর ইঙ্গিতই দিয়েছেন বলিউডের এ প্রখ্যাত অভিনেতা। তবে তার হাতে আরও একটি ছবি রয়েছে। সেটার শুটিং শেষেই হয়তো দীর্ঘদিনের ক্যারিয়ারে ইতি টানতে পারেন তিনি।

এ ছাড়া বছরের অন্যান্য সময় অমিতাভ বচ্চনের পাশাপাশি বলিউডের অন্য অভিনেতা-অভিনেত্রীর ছবি মুক্তি পাবে। তবে এ বছর শাহরুখ খানের কোনো ছবি মুক্তির তালিকায় এখনও পর্যন্ত আসেনি।

যদিও গত বছর তিনি নতুন ছবি নির্মাণের ঘোষণা দিয়েছেন। তবে কবে নাগাদ সেটার কাজ শুরু করবেন তা স্পষ্ট করে বলেননি। পাশাপাশি সালমান খানও নতুন কোনো ছবি মুক্তির ঘোষণা দেননি।

ইংল্যান্ডের ওয়ার্ম-আপে নিষিদ্ধ হলো ফুটবল

ক্রীড়া প্রতিবেদক ॥ ক্রিকেটারদের ওয়ার্ম-আপে ফুটবল খেলা নিষিদ্ধ করেছে ইংল্যান্ড। অনুশীলনের সময়ে ফুটবল খেলতে গিয়ে চোট পেয়ে দক্ষিণ আফ্রিকা সফর থেকে ওপেনার ররি বার্নস ছিটকে যাওয়ার পর এই সিদ্ধান্তে এসেছে দলটি। কেপ টাউনে শুক্রবার শুরু হয়েছে সিরিজের দ্বিতীয় টেস্ট। আগের দিন ওয়ার্ম-আপের সময়ে ফুটবল খেলতে গিয়ে বাজেভাবে বাঁ পায়ের গোড়ালির গাঁটে চোট পান বার্নস। সিরিজের বাকি দুই টেস্টেও খেলতে পারবেন না ছন্দে থাকা টপ অর্ডার ব্যাটসম্যান। শুক্রবার রাতেই তার দেশে ফিরে যাওয়ার কথা জানিয়েছে ইংল্যান্ড ও ওয়েলস ক্রিকেট বোর্ড। এই ঘটনার পর ইসিবির পুরুষ ক্রিকেটের পরিচালক অ্যাশলি জাইলস ও কোচ ক্রিস সিলভারউড এই সিদ্ধান্ত নেন। ২০১৮ সালের শেষ দিকে অনুশীলনে ফুটবল খেলতে গিয়ে চোট পেয়েছিলেন জনি বেয়ারস্টো। তার আগে জো ডেনলি ও জেমস অ্যান্ডারসনেরও ফুটবল খেলতে গিয়ে চোট পাওয়ার অভিজ্ঞতা আছে। সেঞ্চুরিয়নে সিরিজের প্রথম টেস্টে ১০৭ রানে হেরে ১-০ তে পিছিয়ে আছে ইংল্যান্ড। চোট ভালোই ভোগাচ্ছে সফরকারীদের। বার্নস ছাড়াও চোটের কারণে কেপ টাউন টেস্টে খেলতে পারছেন না গতিময় পেসার জফ্রা আর্চার।

মুশফিকের অতিমানবীয় ব্যাটিংয়েও খুলনার হার

ক্রীড়া প্রতিবেদক ॥ রোবটের মতো চেষ্টা করলেন মুশফিকুর রহিম। ক্রিজে থাকাকালীন প্রতিপক্ষ বোলারদের ওপর চালালেন স্টিম রোলার। ব্যাটে ছোটালেন স্ট্রোকের ফুলঝুরি। তবু হার এড়াতে পারল না খুলনা টাইগার্স। ঢাকা প্লাটুনের কাছে ১২ রানে হেরে গেছে তারা। উত্তেজনাকর এ জয়ে পয়েন্ট টেবিলের শীর্ষে উঠে গেছে মাশরাফি বাহিনী। ৯ ম্যাচে তাদের জয় ৬ ও হার ৩। জয়ের লক্ষ্যে ব্যাট করতে নেমে শুরুতেই হোঁচট খায় খুলনা। দলীয় ১১ রানে মাশরাফি বিন মুর্তজার শিকার হয়ে ফেরেন আমিনুল ইসলাম। তৎক্ষণাৎ সেই শিবিরে দ্বিতীয় আঘাত হানেন হাসান মাহমুদ। মেহেদী হাসান মিরাজকে ক্লিন বোল্ড করে দেন তিনি। খানিক বিরতিতে শামসুর রহমানকে ফিরিয়ে দেন শাদাব খান। সেই জের না কাটতেই হাসান মাহমুদের শিকার হয়ে ফেরত আসেন হার্ডহিটার রাইলি রুশো। তাতে চরম বিপাকে পড়ে দক্ষিণের দলটি। এখান থেকে নাজিবুল্লাহ জাদরানকে নিয়ে প্রতিরোধ গড়ে তোলেন মুশফিকুর রহিম। প্রথমে নিজেদের মধ্যে বোঝাপড়া গড়ে তোলেন তারা। মেলবন্ধন তৈরি হলে ঢাকা বোলারদের শাসাতে শুরু করেন এ জুটি। তবে হঠাৎ রানআউটে কাটা পড়েন জাদরান। বিদায়ের আগে ২৯ বলে ৩ চার ও ২ ছক্কায় ৩১ রান করেন তিনি। এর আগে মুশফিকের সঙ্গে ৫৬ রানের জুটি গড়েন এ আফগান। তাতে জয়ের স্বপ্ন দেখতে থাকে খুলনা। তবে সেই অবস্থায় আস্থার প্রতিদান দিতে পারেননি রবি ফ্রাইলিংক। হাসান মাহমুদের বলে তড়িঘড়ি ফেরেন তিনি। যদিও একপ্রান্তে মুশফিক তা-ব চলতেই থাকেন। ব্যাটকে তলোয়ার বানিয়ে ঢাকা বোলারদের কচুকাটা করেন তিনি। একপর্যায়ে মিস্টার ডিপেন্ডেবলও হার মানেন। হাসান মাহমুদের বলে ফিনিশ হন মুশি। প্যাভিলিয়নের পথ ধরার আগে ৩৩ বলে ৬ চার ও ৪ ছক্কায় ৬৪ রানের বিধ্বংসী ইনিংস খেলেন তিনি। মুশফিকের বিদায়ের সঙ্গে খুলনার জয়ে স্বপ্নও উবে যায়। কিছুক্ষণ পরই থিসারা পেরেরার শিকার হন আমির। তাতেই জয় নিশ্চিত হয়ে যায় ঢাকার। শেষ পর্যন্ত নির্ধারিত ২০ ওভারে ৮ উইকেটে ১৬০ রান করতে সামর্থ হয় খুলনা। তাদের ৪ উইকেট নেন মাহমুদ। ফলে ম্যাচসেরার পুরস্কারও উঠেছে তার হাতে। বঙ্গবন্ধু বিপিএলে সিলেট পর্বের তৃতীয় ম্যাচে মুখোমুখি ঢাকা-খুলনা। শুক্রবার সিলেট ইন্টারন্যাশনাল ক্রিকেট স্টেডিয়ামে দুপুর ২টায় ম্যাচটি শুরু হওয়ার কথা ছিল। তবে বৃষ্টির কারণে ৪০ মিনিট দেরিতে গড়ায় খেলা। যাতে টস জিতে প্রথমে ফিল্ডিংয়ের সিদ্ধান্ত নেন খুলনা অধিনায়ক মুশফিকুর রহিম। ফলে আগে ব্যাটিং করতে নামে ঢাকা। দলকে উড়ন্ত সূচনা এনে দেন আনামুল হক ও তামিম ইকবাল। তবে তারা বিচ্ছিন্ন হতেই চাপে পড়ে দলটি। দলীয় ৪৫ রানে মোহাম্মদ আমিরের বলে ব্যক্তিগত ২৫ রান করে ফেরেন তামিম। ড্যাশিং ওপেনারের পর শফিউল ইসলামের বলে দ্রুত ফেরেন আনামুল। সেই রেশ না কাটতেই আমিনুল ইসলামের কট অ্যান্ড বোল্ড হন মেহেদী হাসান। ফলে চাপে পড়ে ঢাকা। বিপর্যয়ের মুখে দলের হাল ধরেন মমিনুল হক। আরিফুল হককে নিয়ে এগিয়ে যান তিনি। পথিমধ্যে চাপ কাটিয়ে ওঠেন তারা। ক্রিজে সেট হয়ে যান এ জুটি। তাতে ঢাকার রানের চাকাও ঘুরে দ্রুতগতিতে। তবে হঠাৎ পথচ্যুত হন মুমিনুল। আমিরের শিকার হয়ে প্যাভিলিয়নের পথ ধরেন তিনি। ফেরার আগে ৩৬ বলে ৩ চারে ৩৮ রানের দায়িত্বশীল ইনিংস খেলেন পয়েট অব ডায়নামো। ততক্ষণে বড় সংগ্রহের ভিত পেয়ে যায় ঢাকা। তাতে বাড়তি জ্বালানি জোগান আসিফ আলি। ক্রিজে নেমেই ঝড় তুলেন তিনি। খুলনা বোলারদের ওপর রীতিমতো তাণ্ডব চালান পাকিস্তানি রিক্রুট। অপর প্রান্ত আগলে রাখেন আরিফুল। সুযোগ পেলে তিনিও তোপ দাগান। তাতে বনবন করে ঘুরে প্লাটুনদের রানের হুইল। শেষ পর্যন্ত নির্ধারিত ২০ ওভারে ৪ উইকেটে ১৭২ রান জোগাড় করেন তারা। মাত্র ১৩ বলে ৪ ছক্কার বিপরীতে ২ চারে হার না মানা ৩০ রানের বিস্ফোরক ইনিংস খেলেন আসিফ। ৩০ বলে ৩ চার ও ১ ছক্কায় ৩৭ রানের গুরুত্বপূর্ণ ইনিংস খেলে অপরাজিত থাকেন আরিফুল। টাইগার্সদের হয়ে ২ উইকেট নেন মোহাম্মদ আমির।

দ্বিতীয় সপ্তাহে ১০ সিনেমা হলে ‘মায়া, দ্য লস্ট মাদার’

বিনোদান বাজার ॥ ‘নেকাব্বরের মহাপ্রয়াণ’ সিনেমা দিয়ে ২০১৪ সালে চলচ্চিত্র পরিচালক হিসেবে পথ চলা শুরু করেন কবি মাসুদ পথিক। সেরা চলচ্চিত্রসহ বেশ কয়টি শাখায় জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার জিতে ছিলো সেই সিনেমা। মাসুদ পথিক পুরস্কৃত হয়েছিলেন সেরা গীতিকার হিসেবে।

গত ২৭ ডিসেম্বর ৭ সিনেমা হলে মুক্তি পায় মাসুদ পথিকের দ্বিতীয় পূর্ণদৈর্ঘ্য সিনেমা ‘মায়া দ্য লস্ট মাদার’। দ্বিতীয় সপ্তাহে ৭ টি হলের সঙ্গে আরও তিনটি সিনেমা হল যুক্ত হয়েছে।

নির্মাতা মাসুদ পথিক জানান, দ্বিতীয় সপ্তাহে ছবিটি চলবে ঢাকার স্টার সিনেপ্লেক্স, যমুনা ব্লকবাস্টার, বলাকা, শ্যামলী সিনেমা, নারায়ণগঞ্জের সিনেস্কোপ, সিলেটের বিজিপি সিনেমা হল, খুলনার লিবার্টি, বগুড়ার সোনিয়া, চট্টগ্রামের সিলভার স্ক্রিন ও ময়মনসিং এর ছায়াবানী সিনেমা হলে।

মাসুদ পথিক বলেন, ‘আজ বিকেল সাড়ে ৪টায় কবি কামাল চৌধুরী, প্রাণ রায়, জ্যোতিকা জ্যোতি, ঝুন চৌধুরী, দেবাশিস কায়সারসহ পুরো মায়া টিম স্টার সিনেপ্লেক্সে (বসুন্ধরা) থাকবো। সিনেমা দেখবো। দর্শকদের সঙ্গে কথা হবে। আড্ডা হবে।’

মাসুদ পথিক পরিচালিত সরকারি অনুদানপ্রাপ্ত এই ছবিটির কেন্দ্রীয় চরিত্রে অভিনয় করেছেন জ্যোতিকা জ্যোতি। আন্তর্জাতিক খ্যাতিসম্পন্ন চিত্রশিল্পী শাহাবুদ্দিন আহমেদের চিত্রকর্ম ‘নারী’ এবং কবি কামাল চৌধুরীর ‘যুদ্ধশিশু’ কবিতা অবলম্বনে নির্মিত হয়েছে ‘মায়া, দ্য লস্ট মাদার’ ছবিটি।

ছবিটি নিয়ে জ্যোতি বলেন, ‘প্রতিটি দেশপ্রেমী মানুষেরই এটা দেখা উচিত। ছবিটিতে আছে মুক্তিযুদ্ধের চেতনা ও মুক্তিযুদ্ধ-পরবর্তী বর্তমান সমাজব্যবস্থার বাস্তব চিত্র। এতে মাটির গন্ধ আছে, আরও আছে বাংলাদেশের ৬৮ হাজার গ্রাম-বাংলার রূপ। এখনো যারা ছবিটি দেখতে পারেননি তাদের সবাইকে ছবিটি দেখার আমন্ত্রণ জানাই।’

এতে জ্যোতিকা জ্যোতি ছাড়াও অভিনয় করেছেন মুমতাজ সরকার (কলকাতা), প্রাণ রায়, দেবাশীষ কায়সার, সৈয়দ হাসান ইমাম, ঝুনা চৌধুরী প্রমুখ।

বর্ষাকে ‘গহনা’ উপহার দিলেন অনন্ত জলিল

বিনোদান বাজার ॥ দাম্পত্য সম্পর্ককে আরও রঙিন করে তুলতে নতুন বছরের শুরুতে দুই সন্তানকে নিয়ে সংযুক্ত আরব আমিরাতে দুবাইয়ে অবকাশ যাপন করছেন তারকা দম্পতি অনন্ত জলিল-আফিয়া নুসরাত বর্ষা।

নতুন বছরের শুরুতেই দুবাইয়ের বিপনী বিতান থেকে বর্ষার পছন্দসই ‘গহনা’ উপহার দিয়েছেন বলে জানান অনন্ত জলিল।

‘মোস্ট ওয়েলকাম’ খ্যাত এ অভিনেতা বলেন, “দুবাইয়ের শপিংমলে ঘুরে ঘুরে পরিবারের সদস্যদের জন্য কেনাকাটা করেছি। বছরের প্রথম গিফট হিসেবে বর্ষাকে কিছু ‘গহনা’ উপহার দিয়েছি। প্রিয় মানুষকে উপহার দিতে আমার সবসময়ই ভালো লাগে।”

নববর্ষ উদযাপনে ২৯ ডিসেম্বর ঢাকার শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দর থেকে দুই সন্তানকে নিয়ে দুবাইয়ে উদ্দেশ্যে উড়াল দেন অনন্ত-বর্ষা।

কেনাকাটার পাশাপাশি দুবাইয়ের মিরাকল গার্ডেন, দুবাই বুর্জ খলিফাসহ বিভিন্ন এলাকায় ঘোরাঘুরি করেছেন বলে জানান অনন্ত জলিল।

শুক্রবারের ফ্লাইটে তারা ঢাকার পথে রওনা করবেন।

২০০৮ সালে একে অপরের প্রেমে পড়েন ঢালিউডের এ আলোচিত জুটি; গাঁটছড়া বাঁধেন ২০১১ সালে। আরিজ ও আবরার নামে তাদের সংসারে দুই ছেলে রয়েছে।

৬ দিনে গুড নিউজের আয় ১০০ কোটি রুপি

বিনোদান বাজার ॥ বছরেরর শেষ প্রান্তে এসে গত ২৭ ডিসেম্বর মুক্তি পেয়েছে অক্ষয় কুমার-কারিনা কাপুর, দিলজিৎ দোসাঞ্জ-কিয়ারা আদভানি জুটির ‘গুড নিউজ’ সিনেমাটি। ওই ছবিতে মা হতে দেখা গেছে কারিনা ও কিয়ারাকে। এখন বক্স অফিস কাঁপাচ্ছে এই সিনেমা।

মুক্তির ছয় দিনেই ‘গুড নিউজ’ সিনেম ১০০ কোটির মাইলফলক ছুঁয়ে দিয়েছে। রাজ মেহতা পরিচালিত কমেডি ঘরনার সিনেমাটি মাত্র ছয় দিনে আয় করেছে ১১৭ কোটি রুপি।

বলিউডের বাণিজ্য বিশ্লেষক তরণ আদর্শ জানান, ‘গুড নিউজ’ ২০২০ সালের শুরুতেই ভালো খবর দিলো। ছয় দিনেই ১০০ কোটির ক্লাবে পৌঁছে গেছে সিনেমাটি। শুধু ১ জানুয়ারি সিনেমাটির আয় ছিল ২২ কোটি ৫০ লাখ রুপি।

সামনে মুক্তির অপেক্ষায় আছে কারিনা কাপুরের ‘আংরেজি মিডিয়াম’ সিনেমাটি। এই সিনেমায় কারিনার বিপরীতে অভিনয় করেছে ইরফান খান। আগামী ২০ মার্চ মুক্তি পাবে এটি।

অপরদিকে আগামী ২৭ মার্চ মুক্তি পাবে অক্ষয় কুমারের ‘সূর্যবংশী’। ‘সিংঘম’, ‘সিম্বা’র পর রোহিত শেট্টির এই ছবিতে পুলিশের ভূমিকায় দেখা যাবে অক্ষয় কুমারকে। ২০১৯ সাল খুব ভালো কাটিয়েছেন অক্ষয় কুমার। ‘কেশরী’, ‘মিশন মঙ্গল’ ও ‘হাউসফুল ৪’ বক্স অফিস কাঁপিয়েছে। ২০২০ এর শুরুটাও বেশ ভালো হলো তার।

ওমরাহ করলেন নায়িকা পূর্ণিমা

বিনোদান বাজার ॥ ঢাকাই সিনেমার জনপ্রিয় মুখ চিত্রনায়িকা দিলারা হানিফ পূর্ণিমা আগেই জানিয়েছিলেন মক্কা-মদিনা যাচ্ছেন। মা ও মেয়ে নিয়ে তিনি এখন সৌদি আরবে। তিনজন মিলে ওমরাহ পালন করছেন।

বৃহস্পতিবার রাতে পূর্ণিমা নিজের ফেসুবকে মক্কা শরীফের ছবি শেয়ার করেছেন। মা-মেয়েকে নিয়ে কাবাঘর তওয়াফের কথাও জানিয়েছেন। ছবিতে দেখা যাচ্ছে, সাদা পোশাকে পূর্ণিমার কোলে তার মেয়ে আরশিয়া উমাইজা। ও পাশে মা দাঁড়িয়ে আছেন। ছবির ক্যাপশনে লিখেছেনÑ ‘আল্লাহু আকবার’।

বহুদিন ধরেই ওমরাহ করার পরিকল্পনা ছিল পূর্ণিমার। কিন্তু অভিনয়ের ব্যস্ততায় কারণে এতদিন যাওয়া হয়নি। ৩০ ডিসেম্বর তিনি ঢাকা ছাড়েন পূর্ণিমা। ৮ জানুয়ারি দেশে ফিরবেন নায়িকা।

গুঞ্জন ছিল পূর্ণিমা আর অভিনয় করবেন না। তবে এটিকে নিছক গালগল্প বলে উড়িয়ে দিয়েছেন ঢালিউডের অন্যতম এই শীর্ষ নায়িকা। বলেছেন, অবশ্যই তিনি অভিনয় করে যাবেন।

বর্তমানে নঈম ইমতিয়াজ নেয়ামুল পরিচালিত ‘গাঙচিল’ ও ‘জ্যাম’ নামে দুটি ছবি মুক্তির অপেক্ষায় আছে পূর্ণিমার। দুটি ছবির কাজ কিছুটা বাকি আছে। ওমরাহ শেষে দেশে ফিরে এই কাজ শেষ করবেন পূর্ণিমা। ছবি দুটি চলতি বছর মুক্তি পাবে।

২০০৭ সালের ৪ নভেম্বর পারিবারিকভাবে আহমেদ জামাল ফাহাদকে বিয়ে করেন পূর্ণিমা। ২০১৪ সালের ১৩ এপ্রিল তিনি কন্যাসন্তানের মা হন।

আম্পায়ারকে গালি দিয়ে কাঠগড়ায় ভারতের বিশ্বকাপজয়ী ক্রিকেটার শুভম গিল

ক্রীড়া প্রতিবেদক ॥ আম্পায়ারকে গালি দিয়ে বিপাকে পড়েছেন ভারতের বিশ্বকাপজয়ী ক্রিকেটার শুভম গিল। আর এই অভিযোগে এখন কাঠগড়ায় দাঁড়াতে যাচ্ছেন কলকাতা নাইট রাইডার্সের এ তারকা ব্যাটসম্যান। বড় ধরণের শাস্তির মুখে পড়ার শংকায় রয়েছেন তিনি। শুক্রবার রঞ্জি ট্রফির ম্যাচে মুখোমুখি হয় দিল্লি বনাম পাঞ্জাব। দিল্লির আইএস বিন্দ্রা স্টেডিয়ামে অনুষ্ঠিত ম্যাচের প্রথম দিনে শুক্রবার বিতর্কের সূত্রপাত পাঞ্জাব ওপেনার শুভমান গিলের একটি আউটের সিদ্ধান্ত নিয়ে। টাইমস অব ইন্ডিয়ার প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, রঞ্জি ট্রফির মধ্য দিয়েই শুক্রবার আম্পায়ার হিসেবে অভিষেক হয় পশ্চিম পাঠকের। আর অভিষেক ম্যাচেই তার সিদ্ধান্ত নিয়ে রীতিমতো সমালোচনা হচ্ছে। শুভমকে কট বিহাইন্ড আউটের সিদ্ধান্ত দেন আম্পায়ার পশ্চিম পাঠক। কিন্তু আউটের সিদ্ধান্ত দেয়ার পরও উইকেট ছেড়ে মাঠ থেকে বের হতে চাননি শুভম। শুধু তাই নয়, আউটের সিদ্ধান্ত দেয়ায় আম্পায়ার অভিষেক পাঠকের কাছে গিয়ে গালমন্দ করেন পাঞ্জাবের এ ব্যাটসম্যান। শুভম মাঠ ত্যাগ না করায় সিদ্ধান্ত পরিবর্তন করেন আম্পায়ার। আউটের সিদ্ধান্ত পরিবর্তন করায় প্রতিবাদ করে মাঠ থেকে বের হয়ে যায় দিল্লি। বেশ কিছু সময় খেলা বন্ধ থাকার পর ম্যাচ রেফারির হস্তক্ষেপে পুনরায় খেলা শুরু হয়। শুভমের আউটের সিদ্ধান্ত পরিবর্তন করা হলেও লম্বা ইনিংস খেলতে পারেননি। ৪১ বলে ২৩ রান করে ক্যাচ তুলে দিয় ফেরেন তিনি। আম্পায়ার ও ম্যাচ রেফারির রিপোর্টে গালমন্দ করার বিষয়টি যদি প্রমাণিত হয় তাহলে বড় শাস্তি হতে পারে শুভম গিলের।

শৈত্যপ্রবাহে ফসল রক্ষায় করণীয়

কৃষি প্রতিবেদক ॥ রবি মৌসুমে প্রায় সারা দেশে বিশেষ করে উত্তরাঞ্চলে ঘন কুয়াশা ও প্রচন্ড ঠান্ডা আবহাওয়া প্রবাহিত হয়ে থাকে। প্রতিবছরই বোরো বীজতলাসহ বিভিন্ন মাঠ ফসল ঠান্ডাজনিত আঘাতে ক্ষতিগ্রস্ত হয়ে থাকে। প্রচন্ড ঠান্ডা ও ঘন কুয়াশার কবল থেকে বোরো বীজতলাসহ বিভিন্ন মাঠ ফসল রক্ষা করা জরুরি হয়ে পড়ে। প্রচলিত কিছু পদ্ধতি ও আধুনিক কৃষি প্রযুক্তি উভয়ই মিলিয়ে সহজেই সম্ভাব্য ক্ষতি থেকে ফসল রক্ষা করা যায় এবং অধিক ফলন নিশ্চিত করা সম্ভব। বোরো ফসল ঃ বীজতলায় এক থেকে দুই ইঞ্চি পানি ধরে রাখতে হবে এবং স্বচ্ছ পলিথিনের ছাউনি দিয়ে বীজতলা ঢেকে রাখা দরকার। শৈত্যপ্রবাহের সময় বীজতলা স্বচ্ছ পলিথিন দিয়ে সকাল ১০-১১টা থেকে সন্ধ্যা পর্যন্ত ঢেকে রাখতে হবে। বীজতলার পানি সকালে বের করে দিয়ে আবার নতুন পানি দিলে, প্রতিদিন সকালে রশি টানা দিয়ে চারা থেকে কুয়াশার পানি ফেলে দিলে চারা শীত থেকে রক্ষা পায় এবং ভালোভাবে বাড়তে পারে। ঠান্ডার কারণে চারায় ধসেপড়া রোগ দেখা দিলে বীজতলা থেকে পানি সরিয়ে দিতে হবে এবং বীজতলায় প্রতি শতাংশে ৫০ গ্রাম পটাশ সার প্রয়োগ করতে হবে। চারা রোপণের সময় শৈত্যপ্রবাহ থাকলে কয়েকদিন দেরি করে চারা রোপণ করুন। রোপণের জন্য কমপক্ষে ৩৫-৪৫ দিনের চারা ব্যবহার করতে হবে। এ বয়সের চারা রোপণ করলে শীতে চারা কম মারা যায়, চারা সতেজ থাকে এবং ফলন বেশি হয়। থোড় ও ফুল ফোটার সময় অতিরিক্ত ঠান্ডা আবহাওয়া থাকলে জমিতে ২-৩ ইঞ্চি পানি ধরে রাখলে থোড় সহজে বের হয় এবং চিটার পরিমাণ কম হয়। ঠান্ডা সহনশীল জাত যেমন-ব্রি ধান৩৬, ব্রি ধান৫৫ চাষ করলে বেশি ঠান্ডায় চারা কম মারা যায়। আলু ও টমেটো ঃ ঘন কুয়াশার কারণে আলু ও টমেটো ফসলে লেইট বস্নাইট (মড়ক রোগ) রোগের আক্রমণ হতে পারে। এ ধরনের আবহাওয়ায় আলু ও টমেটো ফসলে প্রতিরোধক হিসেবে বর্দোমিকচার অথবা মেনকোজেবজাতীয় ছত্রাকনাশক প্রতি লিটার পানিতে দুই গ্রাম হারে সাতদিন পর পর ¯েপ্র করতে হবে। এ রোগের আক্রমণ দেখা দেয়ার সঙ্গে সঙ্গে আক্রান্ত গাছ তুলে মাটিচাপা দিতে হবে বা পুড়িয়ে ফেলতে হবে এবং জমিতে সেচ দেয়া বন্ধ রাখতে হবে। এ ছাড়া প্রতি লিটার পানিতে সিকিউর এক গ্রাম মেলোডিও দুই গ্রাম হারে মিশিয়ে সাত থেকে ১০ দিন পর পর ¯েপ্র করতে হবে। সরিষা ও শিম ঃ সরিষা ও শিমগাছে জাবপোকার আক্রমণ দেখা দিলে আঠাযুক্ত হলুদ ফাঁদ অথবা আধাভাঙ্গা নিমবীজের পানি (এক লিটার পানিতে ৫০ গ্রাম নিমবীজ ভেঙে ১২ ঘণ্টা ভিজিয়ে রেখে ছেঁকে নিতে হবে) আক্রান্ত গাছে ৭-১০ দিন পর পর ¯েপ্র করতে হবে। তবে আক্রমণের মাত্রা খুব বেশি হলে প্রতি লিটার পানিতে অ্যাডমায়ার/টিডো/অ্যামিটাফ ০.৫ মিলি হারে মিশিয়ে ¯েপ্র করতে হবে। আমের মুকুল ঃ ঘন কুয়াশার কারণে আমগাছের মুকুল নষ্ট হয়ে যাওয়ার আশঙ্কা থাকে। এরূপ আবহাওয়ায় আমগাছে প্রতিরোধক হিসেবে বর্দোমিকচার অথবা সালফারঘটিত ছত্রাকনাশক যেমন-থিওভিট ৮০ ডাব্লিউজি প্রতি লিটার পানিতে দুই গ্রাম হারে প্রয়োগ করতে হবে। এ ছাড়া এরূপ আবহাওয়ায় শোষক পোকার (হপার) বংশ দ্রুত বৃদ্ধি ঘটতে পারে তাই গাছের কান্ডে ও পাতায় সাইপারমেথ্রিন ১০ ইসি বা ল্যামডা সাই হ্যালাথ্রিন ২.৫ ইসি বা ফেন ভেলোরেট ২০ ইসি গ্র“পের যে কোনো কীটনাশক প্রতি লিটার পানিতে এক মিলি হারে ¯েপ্র করতে হবে। পানের পাতা ঝরা রোধ ঃ তীব্র শীতের কারণে অনেক সময় পানের পাতা ঝরে যেতে পারে। পানের বরজের চারপাশে বিশেষ করে উত্তরে পলিথিন দিয়ে ঢেকে দিলে তীব্র শীতের হাত থেকে রক্ষা করা যায়। সুপারি ও নারিকেলের পাতাপড়া রোধ ঃ তীব্র শীতের কারণে অনেক সময় নারিকেল-সুপারির পাতা পুড়ে যেতে পারে। তীব্র শৈত্যপ্রবাহকালে সেচের পানি বা হালকা গরম পানি ¯েপ্র করলে ভালো ফলাফল পাওয়া যায়। প্রকৃতপক্ষে গাছে নিয়মিত সুষম মাত্রায় সার প্রয়োগ করলে গাছপালা সুস্থ সবল থাকে এবং যে কোনো খারাপ পরিস্থিতি মোকাবেলা করতে পারে। সর্বোপরি, রবি মৌসুমের বিভিন্ন ফসল উৎপাদনে ডিএপিসহ অন্যান্য রাসায়নিক সার সুষম মাত্রায় ব্যবহার করলে বেশি ঠান্ডা থেকে ফসল রক্ষা পায় এবং ফলন বেশি পাওয়া যায়। লেখক : মো. আবু সায়েম, আঞ্চলিক বেতার কৃষি অফিসার, রংপুর

দাপুটে অক্ষয়, ছকে বন্দী সালমান

বিনোদান বাজার ॥ গেল বছর বড়দিনে মুক্তি পেয়েছিল সালমান খানের ‘দাবাং থ্রি’। তবে ভারতের রাজনৈতিক অস্থিরতার কারণে তার অন্যান্য সিনেমার মতো এটি তেমন সাড়া ফেলতে পারেনি।

প্রযোজনা সংস্থার পক্ষ থেকে জানানো হয়েছে, নাগরিকত্ব সংশোধনী আইন (সিএএ) ও জাতীয় নাগরিক নিবন্ধন (এনআরসি) ইস্যুতে ভারতজুড়ে প্রতিবাদের জেরে ব্যবসার ক্ষতি হয়েছে। তবে ‘দাবাং থ্রি’র এক সপ্তাহ পরে মুক্তি পাওয়া ‘গুড নিউজ’ সিনেমাটি অক্ষয় কুমারের জন্য বছর শেষে একটি সুখবর হয়ে থাকল।

২০১৯ সালে অক্ষয়ের ৪টি সিনেমা- ‘কেশরি’, ‘মিশন মঙ্গল’, ‘হাউসফুল ৪’, ‘গুড নিউজ’ মুক্তি পেয়েছে। শেষ ছবিটি এখনও হলে চলছে। আর ‘কেশরি’ সুপার হিট না হলেও ক্ষতি পুষিয়ে দিয়েছে ‘মিশন মঙ্গল’ ও ‘হাউসফুল ফোর’। সদ্য ১০০ কোটির ক্লাবে পা রেখেছে ‘গুড নিউজ’।

প্রথম দিন থেকেই এ সিনেমাগুলোতে দর্শকের সাড়া ভালো। লক্ষ্যণীয় বিষয়, অক্ষয়ের চারটি ছবিই ভিন্ন ঘরানার। প্রোপাগান্ডা ছবি করে তিনি সমালোচিত হন। তবে বক্স অফিসে তা হিট। পাশাপাশি ‘হাউসফুল ফোর’-এর মতো সিনেমাও ব্যবসা করেছে। এর বেশিরভাগ কৃতিত্ব অক্ষয় কুমারের।

নিজের এই দাপট দেখে হতবাক অক্ষয়। সম্প্রতি এক সাক্ষাৎকারে তিনি বলেন, ‘আমি নিজেও বিশ্বাস করতে পারি না, আমার ছবি এত টাকার ব্যবসা করেছে।’

তবে যে ফর্মুলার ছবি অক্ষয়ের ক্ষেত্রে চলছে, তা সালমানের ক্ষেত্রে তা চলছে না। গত বছরে ‘দাবাং থ্রি’ ছাড়াও সালমানের ‘ভারত’ সিনেমাটি মুক্তি পায়। এর কপাল ‘রেস থ্রি’র মতো খারাপ না হলেও, এই ছবি আর একটা ‘টাইগার জিন্দা হ্যায়’ও হতে পারেনি। সালমান খানের শেষ সুপার হিট সিনেমা হলো ২০১৭ সালে মুক্তি পাওয়া টাইগারের সিকুয়েল।

এদিকে অ্যাকশন-কমেডি হিরোর তকমা ছেড়ে ‘অল ইন ওয়ান’ প্যাকেজ হয়ে উঠেছেন খিলাড়ি অক্ষয়। কিন্তু সালমান তা করবেন না। কারণ শার্ট ছাড়া ভাইজানকে দেখতেই ভিড় জমান তার ভক্তরা। এমনটাই মনে করেন এই অভিনেতা। তবে জাদু যে চলছে না, তা বুঝতে পারছেন না তিনি! আর বুঝছেন না বলেই সঞ্জয় লীলা বানশালীর সঙ্গে ইগোর লড়াইয়ে তার একটি বড় পরিকল্পনা বাতিল হয়ে গেল। হয়তো এই ছবিতে ছক ভাঙতে পারতেন সালমান। অন্যদিকে অক্ষয়ের আগামী ছবির প্যাকেজও বৈচিত্র্যপূর্ণ। যশ রাজ ফিল্মসের ব্যানারে পৃথ্বীরাজ চৌহানের চরিত্রে অভিনয় করবেন তিনি।

অক্ষয়ের এক সময়ের হিট পার্টনার ক্যাটরিনা কাইফসহ কৃতী শ্যানন, কিয়ারা আডবাণী, নবাগতা মানুষী চিল্লার, নায়িকা নির্বাচনে কোনো একঘেয়েমি নেই তার। কিন্তু সালমান খান তার ক্যাম্পের বাইরে কাজ করেন না। তার নতুন এন্ট্রি বলতে দিশা পাটানি।

সম্প্রতি বলিউডের সিনিয়রদের মধ্যে অক্ষয় আর সালমানের সিনেমাই আসছে প্রতিবছর। কিন্তু একই ফর্মুলার সিনেমার এমন বিপরীত ফলাফল হয়তো আশা করা যায় না। সূত্র : আনন্দবাজার পত্রিকা