গাংনীতে মাছ চাষ বিষয়ক মাঠ দিবস

গাংনী প্রতিনিধি ॥ মেহেরপুরের গাংনী উপজেলার রাইপুর ইউনিয়নের হাড়িয়াদহ গ্রামে উচ্চমান সম্মত দেশীয় প্রজাতির মাছ চাষ বিষয়ক মাঠ দিবস অনুষ্ঠিত হয়েছে। গতকাল বৃহস্পতিবার বিকেলে হাড়িয়াদহ-মহিষাখোলা বাজার এলাকায় মাঠ দিবস অনুষ্ঠিত হয়। পল্লী কর্ম-সহায়ক ফাউন্ডেশনের সহযোগিতায় মাঠ দিবস অনুষ্ঠানের আয়োজন করে পলাশীপাড়া সমাজ কল্যাণ সমিতি। সভাপতিত্ব করেন রাইপুর ইউনিয়ন পরিষদের সাবেক সদস্য রবিউল ইসলাম। অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্য রাখেন পলাশীপাড়া সমাজ কল্যাণ সমিতির মৎস্য অফিসার পিয়াঙ্কা ফেরদৌস। বিশেষ অতিথি হিসাবে বক্তব্য রাখেন পলাশীপাড়া সমাজ কল্যাণ সমিতির মৎস্য সহকারী মৎস্য অফিসার খালেদ কবির ও সামিউল্লাহ। মাঠ দিবস অনুষ্ঠানে হাড়িয়াদহ গ্রামের মৎস্য চাষী ও মৎস্য ব্যবসায়ীরা উপস্থিত ছিলেন।

ঝিনাইদহে আইন শৃঙ্খলা বিষয়ক মতবিনিময় সভা

ঝিনাইদহ  প্রতিনিধি ॥ “মুজিববর্ষের অঙ্গীকার, পুলিশ হবে জনতার” মাদক, জঙ্গীবাদ, সন্ত্রাস নারী ও শিশু নির্যাতন কে ‘না’ বলুন শ্লোগানে ঝিনাইদহে আইন শৃঙ্খলা বিষয়ক মতবিনিময় সভা অনুষ্ঠিত হয়েছে। গতকাল বৃহস্পতিবার বিকেলে সদর উপজেলার গান্না ইউনিয়নের চন্ডিপুর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় মাঠে এ মতবিনিময় সভা অনুষ্ঠিত হয়। অনুষ্ঠানের আয়োজন করে ৬নং গান্না ইউনিয়ন কমিউনিটি পুলিশিং কমিটি।  সভায় গান্না ইউপি চেয়ারম্যান নাসির উদ্দিন মালিথার সভাপতিত্বে প্রধান অতিথি ছিলেন ঝিনাইদহের পুলিশ সুপার হাসানুজ্জামান (পিপিএম)। বিশেষ অতিথি হিসাবে বক্তব্য রাখেন উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা বদরুদ্দোজা শুভ, সদর থানার অফিসার ইনচার্জ মঈন উদ্দিন, সদর উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক শহীদুল ইসলাম হিরণ, পৌর আওয়ামী লীগের সভাপতি বাবু জীবন কুমার বিশ্বাসসহ প্রমুখ।  মতবিনিময় সভায় উপস্থিত সাধারণ জনতার বিভিন্ন অভিযোগের জবাব ও মতামত প্রদান করেন প্রধান অতিথি পুলিশ সুপার হাসানুজ্জামান (পিপিএম)।

ভেদামারী পাঁচবাড়ীয়া আলিম মাদরাসায় কৃতি শিক্ষার্থীদের সংবর্ধনা

হালসা প্রতিনিধি ॥ কুষ্টিয়ার  মিরপুর উপজেলার ভেদামারী পাঁচবাড়ীয়া আলিম মাদরাসার  কৃতি শিক্ষার্থীদের সংবর্ধনা ও আলেম ও দাখিল পরীক্ষার্থী বিদায় অনুষ্ঠান মাদরাসার অধ্যক্ষ আলহাজ্ব মোহাম্মদ আলীর সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত হয়।  প্রধান অতিথি হিসাবে কৃতি শিক্ষার্থীদের বৃত্তির টাকা ও সম্মাননা পুরস্কার প্রদান করেন মাদরাসার সভাপতি, আমবাড়ীয়া ইউনিয়ন আ’লীগের সিনিয়র সহ সভাপতি মোশাররফ  হোসেন। বিশেষ অতিথি ছিলেন হালসা হাইস্কুলের সাবেক প্রধান শিক্ষক রবজেল হোসেন, বীর মুক্তিযোদ্ধা সামসুদ্দিন আলম, ডাক্তার ইলিয়াছ, ইউপি সদস্য এনামুল, সিনিয়র শিক্ষক মোজাফর হোসেন। অনুষ্ঠান পরিচালনা করেন আলহাজ্ব মাওলানা নুর মোহাম্মদ বিন হানিফ।

হালসা কেজি স্কুলের  পিএসপিতে  জিপিএ-৫ প্রাপ্ত ৩২জনকে সংবর্ধনা

মিলন আলী ॥ কুষ্টিয়ার মিরপুর উপজেলা চতুর্থবারের মত  সেরা ফলাফল প্রাপ্ত হালসা কেজি স্কুলের ৩২জন জিপিএ- ৫ প্রাপ্ত শিক্ষার্থীকে বর্ণাঢ্য আয়োজনে সংবর্ধনা দেয়া হয়েছে। হালসা আদর্শ ডিগ্রি কলেজ মাঠে  স্কুলের পরিচালক রহিদুল ইসলাম সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে প্রধান  অতিথি ছিলেন ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয়ের আইন বিভাগের ডিন অধ্যাপক প্রফেসর ড: হালিমা খাতুন। পরে সংবর্ধিত শিক্ষার্থীদের ক্রেস্ট প্রদান করা হয়। অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি ছিলেন বীর মুক্তিযোদ্ধা আক্কাছ আলী, প্রকৌশলী হাসিবুল ইসলাম, সহকারী শিক্ষক আইয়ুব আলী, রনি আহমেদ নাজিমুদ্দিন। অনুষ্ঠান পরিচালনা করেন সিনিয়র শিক্ষক আহাদ আলী।

নর্থ ওয়েস্টার্ন ইউনিভার্সিটিতে সরস্বতী পূজা উদ্যাপিত

নর্থ ওয়েস্টার্ন ইউনিভার্সিটিতে বিদ্যার দেবী সরস্বতী পূজা উৎসবমূখর পরিবেশে অনুষ্ঠিত হয়। সকাল ৯টায় প্রতিমা স্থাপণের মাধমে অনুষ্ঠানের শুভ উদ্বোধন করেন বিশ্ববিদ্যালয়ের ভাইস-চ্যান্সেলর প্রফেসর ড. তারাপদ ভৌমিক। অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন  বিশ^বিদ্যালয়ের ট্রেজারার প্রফেসর সুধীর কুমার পাল, রেজিস্ট্রার মোঃ শহীদুল ইসলাম, বিভিন্ন বিভাগের বিভাগীয় প্রধানগণ, শিক্ষক, বিশ্ববিদ্যালয়ের বিভিন্ন স্তরের কর্মকর্তা-কর্মচারীবৃন্দ ও  ছাত্র-ছাত্রীবৃন্দ। পূজা পরিচালনা করেন অত্র বিশ্ববিদ্যালয়ের ইলেকট্রিক্যাল এ্যান্ড ইলেকট্রনিক ইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগের প্রধান পার্থ প্রতিম মন্ডল। পূজা শেষে প্রসাদ বিতরণ করা হয়। সংবাদ বিজ্ঞপ্তি

গাংনীতে সাংবাদিকদের মুক্তি নারী ও শিশু উন্নয়ন সংস্থার অবহিতকরণ সভা

গাংনী প্রতিনিধি ॥ মেহেরপুরের গাংনীতে স্থানীয় সাংবাদিকদের সাথে মুক্তি নারী ও শিশু উন্নয়ন সংস্থার অবহিতকরণ সভা অনুষ্ঠিত হয়েছে। গতকাল বৃহস্পতিবার সকাল ১১টার দিকে গাংনী উপজেলা কৃষক প্রশিক্ষণ কেন্দ্রে এ সভা অনুষ্ঠিত হয়। ব্রেড ফর দ্যা ওয়ার্ড-এর সহযোগিতায় অবহিতকরণ সভার আয়োজন করে মুক্তি নারী ও শিশু উন্নয়ন সংস্থা। সভায় সভাপতিত্ব করেন গাংনী উপজেলা প্রেসক্লাবের সভাপতি ও ইত্তেফাক সংবাদদাতা আমিরুল ইসলাম অল্ডাম। প্রধান অতিথি হিসাবে বক্তব্য রাখেন মুক্তি নারী ও শিশু উন্নয়ন সংস্থার প্রকল্প সমন্বয়কারী উম্মে সালমা। বিশেষ অতিথি হিসাবে বক্তব্য রাখেন সংস্থার অর্থ ও প্রশাসন কর্মকর্তা ফরহাদ আলী খান। এ সময় বক্তব্য রাখেন বণিক বার্তার মেহেরপুর প্রতিনিধি মাহাবুব আলম, সাংবাদিক হারুন-অর রশিদ রবি, জুলফিকার আলী কানন, সাহাজুল সাজু, তোফায়েল হোসেন প্রমুখ। সভায় নারী ও শিশুর অধিকার, বাল্যবিবাহ প্রতিরোধ ও পারিবারিক সহিংসতা প্রতিরোধমূলক বিষয় নিয়ে আলোচনা করা। এ সময় সংস্থার কার্যক্রমের বাৎসরিক ফলাফল উপস্থাপন করেন সংস্থার প্রকল্প সমন্বয়কারী উম্মে সালমা। এসময় বিভিন্ন প্রিন্ট ও ইলেক্ট্রিনিক মিডিয়ার সাংবাদিকবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন।

তাহের মাধ্যমিক বিদ্যালয়ে বাল্যবিবাহ, সন্ত্রাস ও মাদকমুক্ত সমাজ গঠনে ক্যাম্পেইন

আল-মাহাদী ॥ কুষ্টিয়ার ভেড়ামারায় জাতীয় মহিলা সংস্থা’র তত্ত্বাবধানে এবং উপজেলা পরিচালন ও উন্নয়ন প্রকল্প (ইউজিডিপি) এর আর্থিক সহায়তায় সন্ত্রাস, মাদকমুক্ত সমাজ গঠন, বাল্যবিবাহ প্রতিরোধ এবং যৌতুকের মতো সামাজিক ব্যাধিকে দুর করতে বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে সপ্তাহব্যাপী সচেতনতামূলক ক্যাম্পেইন” এর গতকাল বৃহস্পতিবার ছিল ৬ষ্ঠ দিন। সকাল ১০টায় তাহের মাধ্যমিক বিদ্যালয়ে অনুষ্ঠিত সভায় রিসোর্সপার্সন ছিলেন ভেড়ামারা উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা অফিসার মোঃ ফারুক আহমেদ এবং ভেড়ামারা থানার সেকেন্ড অফিসার মোঃ রিফাজ উদ্দীন। জাতীয় মহিলা সংস্থার চেয়ারম্যান বলাকা পারভীন স্বপ্না’র সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত এ অনুষ্ঠানে বক্তব্য রাখেন, বিদ্যালয় পরিচালনা পর্ষদের সভাপতি আলহাজ্ব আঃ মান্নান মন্ডল, আওয়ামীলীগ নেতা আবু দাউদ, বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক মোহাম্মদ রফিকুল ইসলাম প্রমুখ। অনুষ্ঠান উপস্থাপনা করেন জাতীয় মহিলা সংস্থা’র সমন্বয়কারী মোহাঃ আসমান আলী।

‘বইমেলার সময় বাড়ানোর সুযোগ নেই’

ঢাকা অফিস ॥ সিটি নির্বাচনের কারণে এবার একুশের বইমেলা একদিন দেরিতে শুরু হলেও বঙ্গবন্ধুর জন্মশতবার্ষিকীর প্রস্তুতির কারণে সময় বাড়ানো হবে না। ২৯ ফেব্র“য়ারিই শেষ হবে বইমেলা। আসন্ন অমর একুশে বইমেলা উপলক্ষে গতকাল বৃহস্পতিবার এক সংবাদ সম্মেলনে বাংলা একাডেমির মহাপরিচালক হাবীবুল্লাহ সিরাজী বলেন, “এবারের বইমেলা একদিন পেছালেও আগামী ৩ মার্চ থেকে সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে বঙ্গবন্ধুর জন্মশতবার্ষিকী উপলক্ষে প্রস্তুতি অনুষ্ঠান আছে। “তাই এবারের বইমেলা ২৯ ফেব্র“য়ারির মধ্যেই শেষ করতে হবে, পেছানোর কোনো সুযোগ নেই।” আগামী ২ ফেব্র“য়ারি বিকাল তিনটায় বইমেলা উদ্বোধন করবেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। পরে মেলা পরিদর্শন করবেন তিনি। উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি থাকবেন সংস্কৃতি বিষয়ক প্রতিমন্ত্রী কেএম খালিদ, শুভেচ্ছা বক্তব্য রাখবেন সংস্কৃতি বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের সচিব আবু হেনা মোস্তফা কামাল। অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করবেন জাতীয় অধ্যাপক আনিসুজ্জামান। সংবাদ সম্মেলনে মেলা পরিচালনা কমিটির সদস্য সচিব বাংলা একাডেমির পরিচালক জালাল আহমেদ বলেন, এবারের বই মেলার থিম হচ্ছে জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জন্মশতবর্ষ। “এবার সোহরাওয়ার্দী উদ্যানের মেলা প্রাঙ্গণটি ‘শিকড়’, ‘সংগ্রাম’, ‘মুক্তি’ ও ‘অর্জন’ এ চারটি নামে নামকরণ করা হয়েছে, যা বঙ্গবন্ধুর জীবন এবং কর্মের সাথে জড়িত। মেলার বিন্যাসের মাধ্যমে মুজিববর্ষের প্রতিচ্ছবি ফুটিয়ে তোলা হয়েছে।” লিখিত বক্তেব্যে জালাল আহমেদ জানান, এবার মেলার পরিসর বাড়ানো হয়েছে। বাংলা একাডেমি ও সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে প্রায় আট লাখ বর্গফুট জায়গাজুড়ে মেলা অনুষ্ঠিত হবে। একাডেমি প্রাঙ্গণে ১২৬টি প্রতিষ্ঠানকে ১৭৯টি ইউনিট ও সোহরাওয়ার্দী উদ্যান অংশে ৪৩৪টি প্রতিষ্ঠানকে ৬৯৪টি ইউনিটসহ মোট ৫৬০টি প্রতিষ্ঠানকে ৮৭৩টি ইউনিট এবং বাংলা একাডেমিসহ ৩৩টি প্রকাশনা প্রতিষ্ঠানকে ৩৪টি প্যাভিলিয়ন বরাদ্দ দেওয়া হয়েছে। প্রথমবারের মতো লিটল ম্যাগ কর্নার নেওয়া হয়েছে সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে। সংবাদ সম্মেলনে জানানো হয়, এ বছর টিএসসি সংলগ্ন সোহরাওয়ার্দী উদ্যান ও একাডেমির উল্টোদিকের কালী মন্দির এবং তিন নেতার মাজারের পাশ দিয়ে থাকবে প্রবেশ ও বহির্গমন পথ। শিশু চত্বরের আয়তনও বাড়ছে। শুধু বইয়ের মেলা হিসেবে এই মেলা আয়োজন হলেও এবার যুক্ত হচ্ছে ফুড কোর্ট। সোহরাওয়ার্দী উদ্যান অংশের দুই প্রান্তে দুটি ফুড কোর্টের ব্যবস্থা করা হয়েছে। প্রতিটি ফুড কোর্টে ২০টি করে খাবার দোকান থাকবে। একাডেমির মহাপরিচালক হাবীবুল্লাহ সিরাজী বলেন, এবাবের বইমেলা হবে সবচেয়ে বড় ও গুরুত্বপূর্ণ বইমেলা। মুজিববর্ষ উপলক্ষে এবারের বইমেলা জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানকে উৎসর্গ করা হচ্ছে। অনুষ্ঠান মঞ্চের আলোচনার বিষয়ও হচ্ছে বঙ্গবন্ধুকে নিয়ে। এবছর বঙ্গবন্ধুকে নিয়ে শুধু বাংলা একাডেমিই প্রকাশ করছে ২৬টি বই। জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জন্মশতবর্ষ উপলক্ষ্যে বঙ্গবন্ধুকে নিয়ে আগামী দুই বছরে মোট ১০০টি বই প্রকাশ করবে একাডেমি। “মেলার উদ্বোধনী দিনে বাংলা একাডেমি থেকে বঙ্গবন্ধুর তৃতীয় গ্রন্থ ‘আমার দেখা নয়া চীন’ প্রকাশিত হবে। এছাড়া প্রতিদিনের মেলা মঞ্চের আলোচনা-সেমিনার, শিশুদের চিত্রাঙ্কন প্রতিযোগিতা, গান, আবৃত্তি, নৃত্যসহ সবকিছুই আবর্তিত হবে বঙ্গবন্ধুকে কেন্দ্র করে,” বলেন মহাপরিচালক। মেলার নিরাপত্তার বিষয়ে তিনি বলেন, গত বছর নিরাপত্তার দায়িত্বে ছিলেন এক হাজার পুলিশ সদস্য। এবার তা বেড়ে দাঁড়িয়েছে দেড় হাজারে। সে সঙ্গে আনসার সদস্যের সংখ্যাও বেড়েছে। তিনি মেলায় আগতদের শাহবাগ থেকে দোয়েল চত্বর পর্যন্ত মেট্রোরেলের কাজ চলায় এ রাস্তায় গাড়ি পার্কিং না করতে আহ্বান জানান তিনি। অস্থায়ী দোকান, হকার উচ্ছেদ, ধুলাবালূ নিয়ন্ত্রণ ও বৃষ্টি হলে অস্থায়ী আশ্রয়কেন্দ্র ও করোনাভাইরাস থেকে নিরাপদ থাকতে বিশেষ ব্যবস্থা নেওয়া হবে বলেও জানান তিনি। সংবাদ সম্মেলনে অন্যদের মধ্যে বক্তব্য রাখেন বাংলা একাডেমির সচিব মোহাম্মদ আনোয়ার হোসেন, বিকাশের চিফ মার্কেটিং অফিসার মীর নওবত আলী, ক্রস ওয়াক কমিউনিকেশনের ব্যবস্থাপনা পরিচারক এমএ মারুফ প্রমুখ।

সুলতানপুর মাদ্রাসায় দাখিল পরীক্ষার্থীদের বিদায় সংবর্ধনা

আমলা অফিস ॥ কুষ্টিয়ার মিরপুর পৌরসভার প্রাণকেন্দ্রে অবস্থিত সুলতানপুর সিদ্দিকীয়া ফাজিল মাদ্রাসায় দাখিল পরীক্ষার্থীদের বিদায় সংবর্ধনা অনুষ্ঠিত হয়েছে। গতকাল বৃহস্পতিবার সকালে মাদ্রাসার হলরুমে এ সংবর্ধনা অনুষ্ঠিত হয়। মাদ্রাসার ভারপ্রাপ্ত অধ্যক্ষ মাওঃ আব্দুল মান্নান ফারুকী’র সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি ছিলেন মাদ্রাসার গভর্ণিং বডির সভাপতি, জেলা পরিষদের সদস্য আলহাজ্ব মহাম্মদ আলী জোয়ার্দ্দার। বিশেষ অতিথি ছিলেন পৌরসভার প্যানেল মেয়র মিনারা খাতুন, চিথলিয়া সাগরখালী আদর্শ ডিগ্রী কলেজের অধ্যক্ষ রবিউল ইসলাম, প্রেসক্লাবের সাধারণ সম্পাদক রাশেদুজ্জামান রিমন, সহ-সভাপতি কাঞ্চন কুমার হালদার, সাবেক সভাপতি আছাদুর রহমান বাবু, সমাজসেবক হাজী আসমত উল্লাহ রইচ। মাদ্রাসার ইংরেজি বিভাগের প্রভাষক আলম আলীর পরিচালনায় এ সময়ে প্রভাষক নাসির উদ্দিন, আব্দুল জব্বার, আব্দুল মালেক, নার্গিস আখতার, আলম আলী, শফালী খাতুন, সিনিয়র সহকারী শিক্ষক ইদ্রিস আলী, আজিজুল হক, রফিকুল ইসলাম, মওলা বক্স, সাইদুল ইসলাম, সহকারী শিক্ষক হাসানুজ্জামান রাসেল, শিরিনা খাতুন, সহকারী মৌলভী আব্দুল কুদ্দুস, শাহ জামাল, লাইব্রেরীয়ান সফর গণি, ইবদেতায়ী শাখার প্রধান নেছার আহমেদ, জুনিয়র শিক্ষক শামসুল হক, আব্দুল্লাহ-আল-মামুন, আব্দুর রাজ্জাক প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন। পরে পরীক্ষার্থীদের মঙ্গল কামনা করে দোয়া মোনাজাত করা হয়।

দৌলতপুরে চরদিয়াড় সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয় ফুটবল টিমকে ফুটবল প্রদান   

দৌলতপুর প্রতিনিধি ॥ খুলনা বিভাগ চ্যাম্পিয়ন কুষ্টিয়ার দৌলতপুরের চরদিয়াড় সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয় ফুটবল টিমকে ফুটবল প্রদান করা হয়েছে। গতকাল বৃহস্পতিবার দুপুর ১টায় দৌলতপুর উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যানের কার্যালয়ে অনুষ্ঠানিকভাবে চরদিয়াড় সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয় ফুটবল টিমকে ১৭টি ফুটবল প্রদান করা হয়। এসময় উপস্থিত থেকে চরদিয়াড় সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষকদের হাতে ফুটবল তুলে দেন দৌলতপুর উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান এ্যাড. এজাজ আহমেদ মামুন ও উপজেলা নির্বাহী অফিসার শারমিন আক্তার। উপস্থিত ছিলেন দৌলতপুর প্রাথমিক শিক্ষা অফিসার মুন্তাকিমুর রহমানসহ সহকারী শিক্ষা অফিসার ও অন্যান্য শিক্ষকবৃন্দ। বিভাগ সেরা এ  ফুটবল দল ঢাকায় জাতীয় পর্যায়ে অংশ নিবে।

মোদির আক্রমণাত্মক বক্তব্যের কড়া জবাব দিল পাকিস্তান

ঢাকা অফিস ॥ ভারতীয় প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির আক্রমণাত্মক বক্তব্যের কড়া জবাব দিয়েছে পাকিস্তান। মোদির বক্তব্য প্রত্যাখ্যান করে ইসলামাবাদের পক্ষ থেকে বলা হয়েছে, ভারতীয় প্রধানমন্ত্রীর যুদ্ধভাবাপন্ন বক্তব্য তার (বিজেপি) সরকারের উগ্রপন্থী মানসিকতা উন্মোচন করেছে। খবর এক্সপ্রেস ট্রিবিউনের। বুধবার পাক পররাষ্ট্রদফতরের পক্ষ থেকে মোদির বক্তব্যের প্রতিবাদ জানিয়ে এটিকে দায়িত্বহীন ও যুদ্ধপ্ররোচিত বক্তব্য বলে উল্লেখ করা হয়। মঙ্গলবার নয়াদিল্লিতে জাতীয় সমর শিক্ষার্থী বাহিনীর (এনসিসি) এক অনুষ্ঠানে বক্তব্য রাখার সময় মোদি বলেন, সামরিক বাহিনী পাকিস্তানকে ধুলায় মিশিয়ে দিতে ৭-১০ দিনের বেশি সময় নেবে না। প্রতিবেশী দেশটি আমাদের সঙ্গে তিনটি যুদ্ধ হেরেছে। কিন্তু দশকের পর দশক ধরে ‘ছায়াযুদ্ধ’ চালিয়ে এসেছে তারা। এদিন এক বিবৃতিতে পাক পররাষ্ট্রমন্ত্রণালয়ের মুখপাত্র আয়শা ফারুকি বলেন, পাকিস্তান সর্ম্পূণভাবে প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির দায়িত্বহীন এবং যুদ্ধপ্ররোচিত মন্তব্য প্রত্যাখ্যান করছে। কাশ্মীর বিরোধী ও জাতিগত বিরোধী নীতি অবলম্বন করায় দেশে এবং আন্তর্জাতিকভাবে সমালোচনার মুখে পড়ে মনোযোগ ঘোরাতে এমন বক্তব্য দিয়েছে বিজেপি সরকার। তিনি যোগ করেন, ভারতীয় প্রধানমন্ত্রীর হুমকি ও উত্তেজক বিবৃতি বিজেপির চরমপন্থী মানসিকতার ব্যাখ্যা দেয়; যেগুলো স্পষ্টত ভারতের রাজ্যগুলোতে ছড়িয়ে পড়েছে। ভারতে ওই অনুষ্ঠানে মোদির দাবি করেছিলেন, স্বাধীনতার পর থেকেই জম্মু-কাশ্মীরে সমস্যা রয়েছে। কয়েকটি পরিবার ও রাজনৈতিক দল উপত্যকার ইস্যুগুলোকে জিইয়ে রেখেছে। তার ফল হিসেবে সন্ত্রাসবাদ মাথাচাড়া দিয়ে উঠেছে। বছরের পর বছর ধরে হাজার হাজার নিরাপরাধ মানুষ প্রাণ হারিয়েছেন। বাসিন্দাদের কাশ্মীর ছাড়তে বাধ্য করা হয়েছে। বর্তমান সরকার কয়েক দশক ধরে চলে আসা এই সমস্যাগুলোর সমাধানের চেষ্টা করতে চায়। কাশ্মীর ইস্যুতে তিনি আরও বলেন, সাবেক সরকারগুলো ওই সমস্যাকে আইনশৃঙ্খলার সমস্যা হিসেবে দেখেছিল। ভারতীয় সেনাবাহিনী পদক্ষেপ গ্রহণ করতে চাইলেও তাদের অনুমতি দেয়া হয়নি। সাবেক সরকারগুলোর নিষ্ক্রিয়তার কারণেই এ সমস্যা তৈরি হয়েছে। প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির এমন বক্তব্যে পুরো পাকিস্তানে প্রতিবাদের ঝড় উঠে।

দৌলতপুরে শিশুর সহায়তায় ফোন ‘চাইল্ড হেল্প লাইন ১০৯৮’ এর সচেতনতামূলক কর্মশালা অনুষ্ঠিত

দৌলতপুর প্রতিনিধি ॥ কুষ্টিয়ার দৌলতপুরে শিশুর সহায়তায় ফোন ‘চাইল্ড হেল্প লাইন ১০৯৮’ এর সচেতনতামূলক কর্মশালা অনুষ্ঠিত হয়েছে। গতকাল বৃহস্পতিবার বেলা ১১টায় উপজেলা পরিষদ কনফারেন্স রুমে এ কর্মশালা অনুষ্ঠিত হয়। দৌলতপুর উপজেলা নির্বাহী অফিসার শারমিন আক্তারের সভাপতিত্বে কর্মশালায় প্রধান অতিথি ছিলেন উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান এ্যাড. এজাজ আহমেদ মামুন। বিশেষ অতিথি ছিলেন কুষ্টিয়া সমাজ সেবা কার্যালয়ের উপ-পরিচালক রুখসানা পারভীন। উপস্থিত ছিলেন উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান সাক্কির আহমেদ, মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান সোনালী খাতুন আলেয়া, দৌলতপুর সমাজ সেবা অফিসার মো. ছানোয়ার আলী। কর্মশালায় স্বাগত বক্তব্য রাখেন জেলা সমাজসবা কার্যালয়ের প্রভিশনাল অফিসার আরিফুল ইসলাম। কর্মশালা পরিচালনা করেন জেলা সমাজসবা কার্যালয়ের সহকারী পরিচালক মুরাদ হোসেন। চাইল্ড সেনসিটিভ সোস্যাল প্রটেকশন ইন বাংলাদেশ (সিএসপিবি) ফেইজ-২ এর আওতায় শিশুর সহায়তায় ফোন ‘চাইল্ড হেল্প লাইন ১০৯৮’ এর সচেতনতামূলক কর্মশালায় মতামত তুলে ধরেন, দৌলতপুর প্রাথমিক শিক্ষা অফিসার মুন্তাকিমুর রহমান, দৌলতপুর কলেজের বাংলা বিভাগের সহকারী অধ্যাপক সরকার আমিরুল ইসলাম, দৌলতখালী মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক মজিবর রহমান, রিফায়েতপুর ইউপি চেয়ারম্যান জামিরুল ইসলাম বাবু ও দৌলতপুর সদর ইউপি চেয়ারম্যান মহিউল ইসলাম মহিসহ বিভিন্ন দপ্তরের প্রতিনিধিগণ। কর্মশালায় শিশু বিষয়ক বিভিন্ন তথ্য ও হেল্প লাইন সংক্রান্ত বিভিন্ন বিষয় নিয়ে পাওয়ার পয়েন্টে প্রজেক্টরের মাধ্যমে উপস্থাপন করা হয়। কর্মশলায় শিশু নির্যাতন, বাল্যবিবাহ ও শিশু পাচাররোধ সংক্রান্ত বিষয়ে টোল ফ্রি হেল্প লাইন ১০৯৮ এ কল দিয়ে সহায়তার চাওয়ার বিষয় তুলে ধরা হয় এবং ব্যাপক প্রচার প্রচরানার জন্য সকলের সহযোগিতা চাওয়া হয়।

 

খোকসায় এসএসসি ও সমমানের পরীক্ষা কক্ষে সিসি ক্যামেরা

খোকসা প্রতিনিধি ॥  এসএসসি ও সমমানের পরীক্ষা কেন্দ্র ও কক্ষে সিসি ক্যামেরা লাগানোর কাজ দ্রুত গতিতে এগিয়ে চলেছে। তবে এ পদক্ষেপে শঙ্কিত হয়ে উঠেছে পরীক্ষার্থী, অভিভাবক ও শিক্ষকরা। আসন্ন এসএসসি ও দাখিল পরীক্ষা নকলমুক্ত রাখতে খোকসা উপজেলার তিন কেন্দ্র ও দুইটি উপকেন্দ্রের প্রতিটি কক্ষে প্রায় শতাধিক সিসি ক্যামেরা লাগানোর কাজ তড়িৎ গতিতে এগিয়ে চলেছে। ইতোমধ্যে খোকসা জানিপুর সরকারী মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের পরীক্ষা নিয়ন্ত্রনের গোপনীয় শাখাসহ এসএসসি কেন্দ্রে ৩২টি কক্ষ ও খোকসা জানিপুর পাইলট বালিকা বিদ্যালয় এসএসসি উপকেন্দ্রের ১২টি কক্ষের সবগুলোই সিসি ক্যামেরার আওতায় আনা হয়েছে। শোমসপুর মাধ্যমিক বিদ্যালয় এসএসসি কেন্দ্র ১৬টি ও  শোমসপুর বালিকা বিদ্যালয় ভেন্যুতে ৭টি কক্ষের ৫ টি ও সদর উদ্দিন খান দাখিল মাদ্রাসা কেন্দ্রে ১০টি সিসি ক্যামের লাগানোর কাজ শেষ পর্যায়ে। একটি ভকেশনাল শাখা সহ এসব কেন্দ্রে ২ হাজার ৮৮ জন পরীক্ষার্থীর পরীক্ষা গ্রহনের প্রস্তুতি চুড়ান্ত। এসএসসি ও সমমানের পরীক্ষা সুষ্ঠুভাবে সম্পন্ন করার লক্ষে জেলা প্রশাসন আয়োজিত সভায় জেলার সবকটি কেন্দ্র ও হল সমুহে সিসি ক্যামেরা স্থাপনের সিদ্ধান্ত নেওয়া হয় বলে খোকসা জানিপুর সরকারী মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষক মহম্মদ আলীসহ একাধিক কেন্দ্র সচিব জানান। সেই সিদ্ধান্তের আলোকেই প্রতিটি কেন্দ্র ও ভেন্যু বিদ্যালয়ের কর্তৃপক্ষ নিজস্ব তহবিল থেকে সিসি ক্যামেরা লাগানোর উদ্যোগ নিয়েছেন। এসব ক্যামেরার মধ্যমে সরাসরি কেন্দ্র সচিবের কক্ষে মনিটর লাগানো হয়েছে। সেখান থেকে মনিটরিং করা হবে।  হঠাৎ এসএসসি ও দাখিল পরীক্ষা কেন্দ্রের কক্ষে সিসি ক্যামেরা স্থাপন করায় শঙ্কিত হয়ে পরেছে পরীক্ষার্থী অভিভাবক ও শিক্ষকরা। তারা দাবি করছেন, পরীক্ষার স্বাভাবিক পরিবেশ বাধাগ্রস্থ হবে। শিক্ষার্থীদের মধ্যে মনিটরিং ভীতি কাজ করবে। ফলে ফলাফল বিপর্য হওয়ার আশঙ্কা করছেন তারা। ধোকরাকোল কলেজের দুই জন প্রভাষক নাম প্রকাশ না করার শর্তে বলেন, অনেক শিক্ষার্থীর কাছে সিসি ক্যামেরা ভয়ের ব্যাপার। অনেকেই এই প্রযুক্তির সাথে পরিচিত নয়। পরীক্ষা কক্ষে এই প্রযুক্তির অপব্যবহার হতে পারে। এ ছাড়া ক্যামেরায় মনিটরিং এর কথা মাথায় আসার সাথে সাথে শিক্ষার্থীদের মধ্যে ভয় গভীর হবে। এতে করে রেজাল্ট খারাপ হতে পারে। একটি বিদ্যালয় পরিচালনা পরিষদের সাবেক সদস্য নাফিজ আহম্মেদ খান রাজু ওই শিক্ষকদের সাথে একমত প্রকাশ করেন। প্রতিটি কক্ষে সিসি ক্যামেরা প্রযুক্তির অপব্যবহারের আশঙ্কা করছে তিনি। সিসি ক্যামেরা বসিয়ে লাভ ক্ষতির হিসাব করছেনা শোমসপুর মাধ্যমিক বালিকা বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক শরিফুজ্জামান। তিনি উপরের নির্দেশ বাস্তবায়ন করেছেন। “ওরা (পরীক্ষার্থীরা) বুঝতেই পারবেনা, কোথায় ক্যামো আছে।” ভয় ভীতিতো দূরের কথা। এমনভাবেই মন্তব্য করলেন খোকসা জানিপুর সরকারী মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক মহম্মদ আলী। তিনি বলেন জেলার নির্দেশ পালন করছেন। সহকারী মাধ্যমিক শিক্ষা অফিসার মোস্তাফিজুর রহমান মনে করছেন, এই পদ্ধতিতে কেন্দ্র পরিদর্শকদের নিয়ন্ত্রন করা সহজ হবে। এ ছাড়া ভাল পরীক্ষার্থীদের দুর্বল পরীক্ষার্থীরা নানাভাবে সমস্যায় ফেলে। ক্যামেরার ভয়ে এটা করার সাহস পাবে না।

চীন থেকে ৩৭০ জন দেশে ফিরতে চান – পররাষ্ট্রমন্ত্রী

ঢাকা অফিস ॥ প্রাণঘাতী করোনাভাইরাসে চীনে মৃতের সংখ্যা বেড়ে ১৭০ জনে দাঁড়িয়েছে। আরও ৭ হাজার ৭১১ জন এতে আক্রান্ত হয়েছে। এ পরিস্থিতিতে দেশটিতে অবস্থানরত এখন পর্যন্ত ৩৭০ জন বাংলাদেশি দেশে ফেরার আগ্রহ প্রকাশ করেছেন বলে জানিয়েছেন পররাষ্ট্রমন্ত্রী এ কে আবদুল মোমেন। গতকাল বৃহস্পতিবার রাজধানীর বঙ্গবন্ধু আন্তর্জাতিক সম্মেলন কেন্দ্রে বাংলাদেশ ডেভেলপমেন্ট ফোরাম (বিডিএফ)- ২০২০ এর সমাপনী অনুষ্ঠান শেষে এক প্রশ্নের জবাবে তিনি এ তথ্য জানান। পররাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, ‘আমরা তো তাদের আনতে রেডি (প্রস্তুত)। যখনই ওরা আসতে চাইবে এবং চাইনিজ সরকার এলাও (অনুমতি) করবে আমরা সাথে সাথে নিয়ে আসবো। শুনেছি কোনো কোনো দেশ তাদের কূটনীতিকদের নিয়ে গেছে, সেই ফাঁকে যদি অন্য কাউকে নিয়ে যায় সেটা জানি না।’ তিনি আরও বলেন, ‘আমাদের যারা ছেলেমেয়ে আছে প্রায় ৩৭০ জনের তালিকা করা হয়েছে। ২২টি প্রতিষ্ঠানে ওরা ছড়িয়ে আছে। বিশেষ করে উহানের কথা বলছিৃ এমনিতেই চাইনিজরা যেটা করেছে সেটা হচ্ছে তাদের অসুখ-বিসুখ হলে চাইনিজ সরকার চিকিৎসা দেবে। আর আমরা এখানে মোটামোটিভাবে রেডি।’ মোমেন বলেন, ‘উহান থেকে বাসযোগ আনতে হবে এয়ারপোর্টে। ৩৭০ জন হলেও আমাদের ৪১৯ জনের কমার্শিয়াল ফ্লাইট আছে। আমরা সেটা পাঠিয়ে দেব। তবে চাইনিজদের সময় নির্ধারণ করে দেবে। তাই ডেট দিলেই আমরা ফ্লাইট পাঠাবো।’ বিষয়টি কি চীনাদের ওপর নির্ভর করছে, এমন প্রশ্নে পররাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, ‘ওদের ওপরই নির্ভর করছে। তবে এটুকু বলি যে, কিছু সংখ্যক ছাত্র-ছাত্রী তারা আবার বলেছে আসবে না। ১৫ জন শিক্ষার্থী বলছে যে, তারা দেশে এসে অসুস্থ হলে অমঙ্গল করবেন। তাই তারা দেশে আসতে চান না। তবে এখন পর্যন্ত ৩৭০ জন আসতে আগ্রহী।’ ৩৭০ জন আসলে তো অসুখ-বিসুখের আশঙ্কাটা থেকে যাচ্ছে, এমন প্রশ্নেন জবাবে তিনি বলেন, ‘আমরা সেটা মোকাবিলা করার জন্য প্রস্তুতি গ্রহণ করছি। ওরা আসলে ওদের আমরা আলাদাভাবে রাখবো এবং অবজার্ভ (পর্যবেক্ষণ) করবো।’ বিভিন্ন দেশ বিভিন্ন আইল্যান্ডে তাদের রাখার ব্যবস্থা করছে, এ বিষয়ে মোমেন বলেন, ‘আমাদের তো সে ব্যব্স্থা নেই। তবে আমরা হাসপাতালে রাখবো। কোনো হাসপাতালে রাখার বিষয়টি স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয় ঠিক করবে। আনার দায়িত্ব আমাদের। আনার পর দায়িত্ব স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের।’ ঝুঁকি থাকবে কি-না, এ বিষয়ে তিনি বলেন, ‘ঝুঁকি তৈরির সম্ভাবনা তো আছেই। তবে আশার কথা হচ্ছে, আমাদের কেউই এখনও এ রোগে আক্রান্ত হয়নি। এখন পর্যন্ত ৩৭০ জনের তালিকা পাওয়া গেছে। তাবে এটা আরও বাড়তে পারে।’ চীন ভ্রমণে কিংবা চীন থেকে কেউ আসতে চাইলে কোনো নিষেধাজ্ঞা দেয়া হবে কি-না জানতে চাইলে মন্ত্রী বলেন, ‘আমরা এখনও কোনো নিষেধাজ্ঞা দেইনি। তবে চীন থেকে কেউ আসতে চাইলে তাদের নাম-ঠিকানা নিয়ে পর্যবেক্ষণে রাখবো। যাতে কোনো অসুখ হলে আমরা চিহ্নিত করতে পারি। আমরা এখনও ফ্লাইট বন্ধ করার সিদ্ধান্ত নেইনি।’

ভেড়ামারার ধরমপুরে সমৃদ্ধির অগ্রযাত্রায় বাংলাদেশ শীর্ষক আলোচনা সভা

সমৃদ্ধির অগ্রযাত্রায় বাংলাদেশ শীর্ষক এক আলোচনা সভা গতকাল বৃহস্পতিবার কুষ্টিয়া  জেলা তথ্য অফিসের উদ্যোগে ধরমপুর ইউনিয়ন পরিষদ চত্বরে অনুষ্ঠিত হয়। ধরমপুর ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যন শাহাবুল আলম লালুর সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত আলোচনা সভাতে প্রধান অতিথি ছিলেন ভেড়ামার উপজেলা  নির্বাহী অফিসার মোঃ সোহেল মারুফ হোসেন। প্রধান অতিথি তার বক্তব্যে বলেন, বাংলাদেশের অগ্রযাত্রা এখন আর কোন স্বপ্ন নয়, এটি বাস্তবতা। তিনি আরও বলেন, দেশকে আরও এগিয়ে নিতে আমাদের ছেলে-মেয়ে সকলকে শিক্ষার সুযোগ দিতে হবে। অল্প বয়সে মেয়েদের বিবাহ দিলে এ উন্নয়ন অগ্রযাত্রা বাধাগ্রস্ত হবে। আলোচনা সভার শুরুতে সিনিয়র তথ্য অফিসার মোঃ তৌহিদুজ্জামান সরকারের মেগাপ্রজেক্টগুলোর উপর একটি প্রামাণ্য চিত্র প্রদর্শণ করেন এবং সরকারের বিভিন্ন খাতের অগ্রগতি বিষয়ে একটি পাওয়ার পয়েণ্ট উপস্থাপনা করেন। আলোচনা সভাতে বিশেষ অতিথি ছিলেন ধরমপুর মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক মোঃ আবু তাহের। সংবাদ বিজ্ঞপ্তি

আবরার ফাহাদ হত্যা মামলা যাবে দ্রুত বিচার  ট্রাইব্যুনালে

ঢাকা অফিস ॥ বাংলাদেশ প্রকৌশল বিশ্ববিদ্যালয়ের (বুয়েট) ছাত্র আবরার ফাহাদ হত্যা মামলা দ্রুত নিষ্পত্তির জন্য পাঠানো হচ্ছে দ্রুত বিচার ট্রাইব্যুনালে। গতকাল বৃহস্পতিবার এ মামলায় অভিযোগ গঠনের শুনানির দিন ধার্য থাকলেও সে বিষয়ে কোনো আদেশ না দিয়ে ঢাকার মহানগর দায়রা জজ কেএম ইমরুল কায়েশ এ তথ্য জানান। তিনি বলেন, “মামলাটি দ্রুত বিচার ট্রাইব্যুনালে বদলি হবে। সেজন্য কিছু আনুষ্ঠানিকতা আছে। সরকার সেই আনুষ্ঠানিকতা শেষে গেজেট জারি করলে বদলির আদেশ হবে।” এরপর অভিযোগ গঠনের  জন্য ১৭ ফেব্র“য়ারি নতুন তারিখ ঠিক করে দেন বিচারক। এ সময় কয়েকজন আসামির পক্ষে জামিন আবেদন করা হলে শুনানি না করে বিচারক বলেন, মামলা দ্রুত বিচার ট্রাইব্যুনালে বদলি হলে সেখানেই জামিন আবেদনের নিষ্পত্তি করা হবে। বুয়েটের শেরেবাংলা হলের আবাসিক ছাত্র ও তড়িৎ কৌশল বিভাগের দ্বিতীয় বর্ষের শিক্ষার্থী আবরারকে গত ৬ অক্টোবর রাতে ছাত্রলীগের এক নেতার কক্ষে নিয়ে নির্যাতন চালিয়ে হত্যা করা হয়। পরদিন আবরারের বাবা ১৯ শিক্ষার্থীকে আসামি করে চকবাজার থানায় মামলা করেন। তদন্তে নেমে পুলিশ এজাহারের ১৬ জনসহ মোট ২১ জনকে গ্রেপ্তার করে। পাঁচ সপ্তাহ তদন্ত করে তদন্ত কর্মকর্তা গোয়েন্দা পরিদর্শক ওয়াহিদুজ্জামান গত ১৩ নভেম্বর ঢাকার মুখ্য মহানগর হাকিম আদালতে যে অভিযোগপত্র জমা দেন, সেখানে আসামি করা হয় মোট ২৫ জনকে। অভিযোগপত্র গ্রহণ করে গত ১৮ নভেম্বর পলাতক চার আসামির বিরুদ্ধে গ্রেপ্তারি পরোয়ানা জারি করে ঢাকার অতিরিক্ত মুখ্য মহানগর হাকিম আদালত। তাদের মধ্যে একজন পরে আদালতে আত্মসমর্পণ করেন। অভিযোগ গঠনের শুনানির জন্য মামলার নথিপত্র গত ১৩  মহানগর দায়রা জজ আদালতে স্থানান্তর করা হয়। গত ২১ জানুয়ারি তা আমলে নিয়ে অভিযোগ গঠনের শুনানির জন্য ৩০ জানুয়ারি তারিখ রাখেন মহানগর দায়রা জজ কে এম ইমরুল কায়েশ। এরপর বৃহস্পতিবার তিনি নতুন তারিখ দিলেন। এ মামলায় কারাগারে থাকা ২২ আসামি হলেন- বুয়েট ছাত্রলীগের বহিষ্কৃত সাধারণ সম্পাদক মেহেদী হাসান রাসেল, বহিষ্কৃত সহ-সভাপতি মুহতাসিম ফুয়াদ, বহিষ্কৃত সাংগঠনিক সম্পাদক মেহেদী হাসান রবিন, বহিষ্কৃত তথ্য ও গবেষণা সম্পাদক অনিক সরকার, বহিষ্কৃত ক্রীড়া সম্পাদক মেফতাহুল ইসলাম জিয়ন, বহিষ্কৃত উপ-সমাজসেবা সম্পাদক ইফতি মোশাররফ সকাল, বহিষ্কৃত সদস্য মুনতাসির আল জেমি, মোজাহিদুর রহমান, খন্দকার তাবাখখারুল ইসলাম তানভির, ইসতিয়াক হাসান মুন্না, মিজানুর রহমান, শামসুল আরেফিন রাফাত, মনিরুজ্জামান মনির ও আকাশ হোসেন, বুয়েট শাখা ছাত্রলীগের বহিষ্কৃত উপ-আইন সম্পাদক অমিত সাহা, হোসেন মোহাম্মদ তোহা, মাজেদুর রহমান, শামীম বিল্লাহ ও মোয়াজ আবু হোরায়রা, এ এস এম নাজমুস সাদাত, এস এম মাহমুদ সেতু, এজাহারের বাইরের ছয় আসামি হলেন-বুয়েট ছাত্রলীগের গ্রন্থণা ও প্রকাশনা সম্পাদক ইসতিয়াক আহমেদ মুন্না, আইন বিষয়ক উপ-সম্পাদক অমিত সাহা, মিজানুর রহমান, শামসুল আরেফিন রাফাত, উপ-দপ্তর সম্পাদক মুজতবা রাফিদ, মাহামুদ সেতু ও মেকানিক্যাল ইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগের ১৭তম ব্যাচের মোর্শেদ অমর্ত্য ইসলাম। পলাতক বাকি তিন আসামি হলেন- ইলেকট্রিক অ্যান্ড ইলেকট্রনিক্স বিভাগের ১৬তম ব্যাচের ছাত্র মাহমুদুল জিসান, সিভিল ইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগের ১৭তম ব্যাচের এহতেশামুল রাব্বি ওরফে তানিম ও কেমিক্যাল ইঞ্জিনিয়ারং বিভাগের ১৬তম ব্যাচের মুজতবা রাফিদ।

বিএনপি নির্বাচনের সুষ্ঠু পরিবেশকে প্রশ্নবিদ্ধ করতে চায় – কাদের

ঢাকা অফিস ॥ আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক এবং সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের বলেছেন, বিএনপি সিটি কর্পোরেশন নির্বাচনের সুষ্ঠু পরিবেশকে প্রশ্নবিদ্ধ করার, অপপ্রয়াশ চালাচ্ছে। তারা দাগি ও চিহ্নিত সন্ত্রাসীদের ভাড়া করে ঢাকায় এনেছে। তিনি বলেন, বিএনপি নির্বাচনে জনসমর্থন না পেয়ে বিশৃঙ্খলা সৃষ্টির চেষ্টা করছে। প্রতিটি ভোট কেন্দ্রে তারা ৫শ’ সন্ত্রাসী নিয়োগ করবে বলে জানতে পেরেছি। কাদের গতকাল বৃহস্পতিবার ধানমন্ডিতে আওয়ামী লীগ সভাপতির রাজনৈতিক কার্যালয়ে দলের সম্পাদকমন্ডলীর বৈঠক শেষে সংবাদ সম্মেলনে এ কথা বলেন। সেতুমন্ত্রী বলেন, ঢাকা দুই সিটি কর্পোরেশন নির্বাচনে আমরা ক্লিন ইমেজের দুই প্রার্থীকে মনোনয়ন দিয়েছি। আশা করছি আমাদের প্রার্থীরা বিজয়ী হবেন। তিনি বলেন, নির্বাচনে পরাজিত হওয়ার ভয়ে বিএনপি অপপ্রচার চালাচ্ছে। নির্বাচন বানচালের চক্রান্ত করছে। বিএনপি সুষ্ঠু নির্বাচন চায় না। তাদের নির্বাচন মানে ভোট চুরি, জাল ভোট এবং কেন্দ্র দখল। নির্বাচনের পরিবেশ সুষ্ঠু রাখতে এবং জনগণ যাতে সুষ্ঠুভাবে ভোট দিতে পারে তার ব্যবস্থা করতে নির্বাচন কমিশনের প্রতি আহ্বান জানান কাদের। তিনি বলেন, আমরা আশা করছি নির্বাচন কমিশন জনগণের ভোটাধীকার প্রয়োগের সুযোগ সৃষ্টির জন্য প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেবেন। আইন-শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী সঠিকভাবে দায়িত্ব পালন করবে। আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক বলেন, আওয়ামী লীগ ক্ষমতায় আসলে দেশের উন্নয়ন হয় এটি প্রমাণিত হয়েছে। সারাদেশে উন্নয়ন হচ্ছে। আওয়ামী লীগ দেশের মানুষের মন জয় করতে পেরেছে। এটি বিএনপির ভালো লাগছে না। সংবাদ সম্মেলনে আওয়ামী লীগ যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক আফম বাহাউদ্দিন নাছিম, সাংগঠনিক সম্পাদক আহমদ হোসেন, বিএম মোজাম্মেল হক, এস এম কামাল হোসেন, মির্জা আজম, অ্যাডভোকেট আফজাল হোসেন, সাখাওয়াত হোসেন শফিক, শ্রম বিষয়ক সম্পাদক হাবিবুর রহমান সিরাজ, প্রচার সম্পাদক আব্দুস সোবহান গোলাপ, ত্রাণ ও সমাজকল্যাণ সম্পাদক সুজিত রায় নন্দী, দপ্তর সম্পাদক ব্যারিস্টার বিপ্লব বড়ুয়া, বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিষয়ক সম্পাদক আব্দুস সবুর, উপ-দপ্তর সম্পাদক সায়েম খান প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন।

কেন্দ্র পাহারা দেয়ার অধিকার বিএনপিকে কে দিয়েছে – এইচ টি ইমাম

ঢাকা অফিস ॥ বিএনপি নেতারা ভোটকেন্দ্রে পাহারা বসানোর কথা বলছেন উল্লেখ করে তাদের কেন্দ্র পাহারার অধিকার কে দিয়েছে এমন প্রশ্ন তুলেছেন আওয়ামী লীগের নির্বাচন পরিচালনা কমিটির কো-চেয়ারম্যান এইচ টি ইমাম ইমাম। গতকাল বৃহস্পতিবার দুপুর দেড়টায় নির্বাচন কমিশনে (ইসি) প্রধান নির্বাচন কমিশনার (সিইসি) কে এম নূরুল হুদার নেতৃত্বাধীন কমিশনের সঙ্গে বৈঠকে বসে আওয়ামী লীগের প্রতিনিধি দল। বৈঠক শেষে তিনি সাংবাদিকদের এ কথা বলেন। আওয়ামী লীগের একজন নেতা বলেছেন, ছাত্রলীগ যেন কেন্দ্র নিয়ন্ত্রণে নিয়ে নেয়, এ বিষয়ে জানতে চাইলে এইচটি ইমাম বলেন, এ কথা মোটেই ঠিক নয়। বরং আমি বলব বিএনপি নেতারা বলছেন তারা কেন্দ্রে পাহারা বসাবেন। কে তাদের এই অধিকার দিল। এটা কি আইনসিদ্ধ, কোন দলই এটা করতে পারবে না। নির্বাচন নিয়ে বিএনপি কোন চক্রান্ত করছে বলে কোন তথ্য আছে কিনা এমন প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, আমরা চক্রান্তের কথা বা তথ্যের কথা বলিনি। বিএনপি প্রথম থেকে দুটি কথা বলেছে, সেগুলো হলো- সরকারের অধীনে ভালো নির্বাচন হবে না এবং শুরু থেকেই তারা কমিশনকে হেয় করার জন্য তারা চেষ্টা করেছে। আমরা গতদিন বলেছিলাম ২০১৪-১৫ অগ্নি সন্ত্রাসের হোতারা ঢাকার বিভিন্ন জায়গায় আশ্রয় নিয়েছে। তাদের প্রতি কড়া নজর রাখতে হবে, প্রয়োজনে তাদের কাছে থেকে অস্ত্র উদ্ধার করতে হবে। যাতে আইনশৃঙ্খলা পরিস্থিতি অবনতি যেন না ঘটে সেদিকে নজর রাখতে হবে। তিনি বলেন, আইনশৃঙ্খলা বাহিনী দায়িত্ব পালন করছে এবং তারা পালন করবে সে ব্যাপারে আমাদের কোন সন্দেহ নেই। কিন্তু অতীতে দেখেছি নির্বাচনে যখন পরাজয়ের লক্ষণ দেখা যায় হয় তারা বলবে আমরা এখন যাই নির্বাচন সুষ্ঠু হবে না। আর নইলে এমন সন্ত্রাসী কমর্কান্ডের কথা। সে ধরনের সুযোগ যেন না থাকে। বৈঠকে নির্বাচন কমিশনের পক্ষে থেকে সিইসি কে এম নুরুল হুদা, নির্বাচন কমিশনার মাহবুব তালুকদার, রফিকুল ইসলাম, কবিতা খানম ও বিগ্রেডিয়ার জেনারেল (অব:) শাহদাত হোসেন চৌধুরী উপস্থিত ছিলেন। আওয়ামী লীগের নির্বাচন পরিচালনা কমিটির কো-চেয়ারম্যান এইচ টি ইমাম ইমামের নেতৃত্বে প্রতিনিধিদলে অন্যদের মধ্যে ছিলেন- আওয়ামী লীগের প্রেসিডিয়াম সদস্য জাহাঙ্গীর কবির নানক, প্রচার সম্পাদক আবদুস সোবাহান গোলাপ, দলের কার্যনির্বাহী কমিটির সদস্য এ বি এম রিয়াজুল কবীর, সাবেক এমপি বাহাউদ্দিন নাছিম প্রমুখ।

প্রচারণার শেষ দিনে তাবিথ আউয়ালকে সঙ্গে নিয়ে বিভিন্ন স্থানে অধ্যক্ষ সোহরাব উদ্দিনের গণসংযোগ

ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশন (ডিএনসিসি) নির্বাচনে প্রচারণার  শেষ দিনে মিরপুর পল্লবী ও ১২ নং বাসস্ট্যান্ড সংলগ্ন এলাকায় বিএনপি মনোনীত প্রার্থী তাবিথ আউয়ালকে সাথে নিয়ে ধানের শীষ প্রতীকে ভোট প্রার্থনা করেন কুষ্টিয়ার কৃতিসন্তান বিএনপি স্থানীয় সরকার বিষয়ক সম্পাদক, কুষ্টিয়া জেলা বিএনপি’র সাধারণ সম্পাদক ও কুষ্টিয়া-৩ (সদর) আসন থেকে বারবার নির্বাচিত সাবেক সংসদ সদস্য বীর মুক্তিযোদ্ধা অধ্যক্ষ সোহরাব উদ্দিন। তিনি ঢাকা উত্তর সিটি কর্পোরেশন নির্বাচনে বিএনপি সমর্থিত প্রার্থীর ২ ও ৩ নং ওয়ার্ডের প্রধান সমন্বয়কারী হিসেবে কাজ করছেন। প্রচারণায় অংশ নেন বিএনপির চেয়ারপার্সন বেগম খালেদা জিয়ার উপদেষ্টা ও সংসদের সাবেক চিফ হুইপ জয়নুল আবেদীন ফারুক, বিএনপি’র খুলনা বিভাগীয় সাংগঠনিক সম্পাদক সাবেক এমপি, খুলনা মহানগর বিএনপি’র সভাপতি নজরুল ইসলাম মঞ্জু, জাতীয়তাবাদী স্বেচ্ছাসেবক দলের সাংগঠনিক সম্পাদক ইয়াছিন আলীসহ বিএনপি’র বিভিন্ন পর্যায়ের নেতৃবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন। সংবাদ বিজ্ঞপ্তি

মানুষ এতটা নির্লজ্জ ও দলকানা হতে পারে সিইসিকে রিজভী

ঢাকা অফিস ॥ বিএনপির মেয়রপ্রার্থী ইশরাক হোসেনের নির্বাচনী গণসংযোগে হামলার বিষয়ে পুলিশ কর্মকর্তার বক্তব্যের যে ব্যাখ্যা প্রধান নির্বাচন কমিশনার (সিইসি) দিয়েছেন, তার কড়া সমালোচনা করেছেন বিএনপির সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী। সিইসকে উদ্দেশ্য করে তিনি বলেন, মানুষ এতটা নির্লজ্জ ও দলকানা হতে পারে? গতকাল বৃহস্পতিবার রাজধানীর নয়াপল্টনে বিএনপির কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে এক সংবাদ সম্মেলনে তিনি এসব কথা বলেন। ইশরাক হোসেনের নির্বাচনী গণসংযোগে হামলার প্রসঙ্গ টেনে রিজভী বলেন, রোববার দুপুরে ঢাকা দক্ষিণ সিটি কর্পোরেশন নির্বাচনে বিএনপির মেয়রপ্রার্থী ইশরাক হোসেনের প্রচারের সময় ওয়ারীতে আওয়ামী লীগের সশস্ত্র সন্ত্রাসী ক্যাডার বাহিনী আমাদের নেতাকর্মীদের ওপর বর্বর কায়দায় হামলা করে। সেই হামলায় তাদের মদদ ও সহযোগিতায় ছিল পুলিশ। পরে ঘটনাস্থলে দাঁড়িয়ে ওয়ারী থানার ওসি (তদন্ত) মোস্তাফিজুর রহমান তার ওপর মহলের সঙ্গে যে কথাবার্তা বলছিলেন, তার ভিডিও ক্লিপ সোশ্যাল মিডিয়ায় ভাইরাল হয়েছে। তিনি (ওসি) বলছিলেন, ‘যেখানে এক সাংবাদিকের প্রশ্নের জবাবে তিনি বলছেন– পরিস্থিতি ‘নরমাল’ (স্বাভাবিক) আছে। ইশরাকের পার্টি মতিঝিল এলাকায় চলে গেছে। আর আমাদের যে পার্টি আছে, (নৌকার লোকজন) ওরা আছে-সেন্ট্রাল উইমেন্সের (সেন্ট্রাল উইমেন কলেজ) সামনে।’ রিজভী বলেন, এটি নিয়ে সিইসিকে সাংবাদিকরা প্রশ্ন করলে তার জবাবে নূরুল হুদা বললেনÑ ‘পার্টি মানে পুলিশ, মানে তাদের দল, পুলিশের সঙ্গে যে লোকজন থাকে তাদের পার্টি বলে।’ বিএনপির এ নেতা বলেন, নূরুল হুদা মনে করেন দেশবাসী সব বোকা আর তিনি খুব চতুর চালাক। তিনি দেশের মানুষকে ব্যাকরণ শেখান! রিজভী বলেন, এসব কল ব্যাখ্যার জন্য সাধারণ মানুষ নূরুল হুদা সাহেবকে অনেক আগে থেকেই বিশ্বাস করে না। তার বক্তব্য শুনে মনে হয়েছে, সাধারণ আওয়ামী লীগরা এত কঠোর হয় না যতটা সিইসি কঠোর লীগের জন্য কঠোর। কতটা দলকানা হলে মানুষ এতবড় নিলর্জ্জ হতে পারে। নির্বাচন কমিশনের ভূমিকার সমালোচনা করে বিএনপির এই জ্যেষ্ঠ নেতা বলেন, পৃথিবীতে যুগে যুগে দুই-একজন গণবিরোধী স্তাবক ও বিশ্বাাসঘাতক সৃষ্টি হয়েছে, যাদের কারণে একটি জাতি স্বাধীনতা হারিয়েছে অথবা করুণদশায় পতিত হয়েছে। এই পা চাটা গোলামরা শুধু নিজেদের পদ ও ক্ষমতার স্বার্থে পুরো জাতিকে ভয়াবহ বিপদের মুখে ফেলে দেয়। তাদের মতোই নতুন এক নিলর্জ্জ, দলকানা, সেবাদাসপ্রধান নির্বাচন কমিশনার কেএম নূরুল হুদাকে জাতির স্কন্ধে চাপিয়ে দিয়েছে স্বৈরাচারী আওয়ামী লীগ। নূরুল হুদার আচার-আচরণ কাজকর্ম ও কথাবার্তায় মনে হয়, তিনি নির্বাচন কমিশনের মতো সাংবিধানিক কোনো পদে নয়, বরং তিনি আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় কোনো পদে দায়িত্ব পালন করছেন। আর নির্বাচন কমিশনারকে লীগের অফিসটি দেয়া হয়েছে ইসি ভবনে। তিনি বলেন, প্রতিনিয়ত আওয়ামী লীগের এমপিরা প্রকাশ্যে-অপ্রকাশ্যে নির্বাচনী প্রচার চালাচ্ছেন। তারা আবার এখন দলীয় নেতাকর্মী ও বহিরাগত সন্ত্রাসীদের দিয়ে ভোট ডাকাতির ছক তৈরি করছেন, যার খবর ইতোমধ্যে আমাদের কাছে এসেছে। তার পরও সব প্রতিকুলতা ও নীলনকশা উপেক্ষা করে জনগণ ভোট দেয়ার প্রস্তুতি নিচ্ছে। ভোটারদের প্রতি আহ্বান জানাই– নির্ভয়ে ভোটকেন্দ্রে যান, নিজের ভোটের অধিকার প্রতিষ্ঠা করুন, দুঃশাসনের জবাব দিন। রাজধানীতে বিএনপি নেতাদের গ্রেফতারের প্রতিবাদ জানিয়ে রিজভী বলেন, বুধবার রাতে সিরাজগঞ্জ জেলা বিএনপির সহসভাপতি নাজমুল হাসান রানাকে রাজধানীর শমরিতা হাসপাতালের সামনে থেকে এবং হাজারীবাগ থানা বিএনপির সহসভাপতি মো. কোরবান আলী এবং তার পুত্র হাজারীবাগ থানাধীন ১৪নং ওয়ার্ড বিএনপির যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মো. আশরাফ আলীকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ। আর মাত্র একদিন পরেই ঢাকা সিটি কর্পোরেশন নির্বাচন অথচ বিএনপি নেতাকর্মীদের সম্পূর্ণ অন্যায়ভাবে দেদারসে গ্রেফতার করছে পুলিশ। নির্বাচনের প্রাক্কালে উল্লিখিত নেতৃবৃন্দকে গ্রেফতারের ঘটনায় আমি তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানাচ্ছি এবং অবিলম্বে তাদের বিরুদ্ধে দায়েরকৃত অসত্য ও বানোয়াট মামলা প্রত্যাহারসহ নিঃশর্ত মুক্তি দাবি করছি।

মুক্তিযুদ্ধের বিপক্ষের শক্তির এ দেশে রাজনীতি করা সমীচীন নয় – তথ্যমন্ত্রী

ঢাকা অফিস ॥ মুক্তিযুদ্ধের বিপক্ষের শক্তির এ দেশে রাজনীতি করা সমীচীন নয় বলে মন্তব্য করেছেন তথ্যমন্ত্রী ও আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক ড. হাছান মাহমুদ। তিনি বলেন, ‘মুক্তিযুদ্ধের বিপক্ষের শক্তির এ দেশে রাজনীতি করা সমীচীন নয়। দেশকে যদি এগিয়ে নিয়ে যেতে হয়, তাহলে স্বাধীনতার পক্ষের শক্তি ক্ষমতায় থাকবে, আবার বিরোধী দলও হবে স্বাধীনতার পক্ষের শক্তি।’ তথ্যমন্ত্রী গতকাল বৃহস্পতিবার চট্টগ্রাম মহানগরীর ষোলশহরে এলজিইডি ভবনে চট্টগ্রাম উত্তর জেলা আওয়ামী লীগের সাবেক সভাপতি এবং সাবেক এমপি ও রাষ্ট্রদূত নুরুল আলম চৌধুরীর প্রথম মৃত্যুবার্ষিকী উপলক্ষে আয়োজিত স্মরণ সভায় প্রধান আলোচকের বক্তব্যে এ কথা বলেন। চট্টগ্রাম উত্তর জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি ও জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান এমএ সালামের সভাপতিত্বে ও সাধারণ সম্পাদক আতাউর রহমানের পরিচালনায় স্মরণ সভায় প্রধান অতিথি ছিলেন আওয়ামী লীগের সভাপতিমন্ডলীর সদস্য সাবেক মন্ত্রী ইঞ্জিনিয়ার মোশাররফ হোসেন, এমপি। বিশেষ অতিথির বক্তব্য দেন চট্টগ্রাম মহানগর আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ও সিটি মেয়র আ জ ম নাছির উদ্দীন, সংরক্ষিত আসনের এমপি খাদিজাতুল আনোয়ার সনি, চট্টগ্রাম উত্তর জেলা আওয়ামী লীগ নেতা অধ্যাপক মঈন উদ্দিন, আবুল কালাম আজাদ, এটিএম পেয়ারুল ইসলাম, মরহুমের সন্তান আসিফুল সোহাগ সাকিব। ড. হাছান মাহমুদ বলেন, ‘আগামী বছর স্বাধীনতার ৫০ বছর পূর্ণ হবে। স্বাধীনতার ৫০ বছর পরও একটি দেশে স্বাধীনতার বিপক্ষের শক্তি থাকবে, তারা রাজনীতি করবে, এটা হওয়া উচিত নয়। যারা দেশটাই চায়নি, দেশের পতাকাটাই চায়নি, যারা দেশের বিরুদ্ধে লড়াই করেছে, দেশের স্বাধীনতার বিররুদ্ধে লড়াই করেছে, স্বাধীনতার ৫০ বছর পরও তারা রাজনীনিতিতে থাকবে, কোন দেশেই তা সমীচীন নয়। রাজনীতিতে প্রচন্ড সুবিধাবাদীদের অনুপ্রবেশ ঘটেছে উল্লেখ করে তথ্যমন্ত্রী বলেন, এ প্রক্রিয়াটির সূচনা করেছিলেন জিয়াউর রহমান। তিনি ক্ষমতা দখল করার জন্য রাজনীতিবিদদের কেনাবেচার হাট বসিয়েছিলেন। মওসুমে যেমন খেলোয়াড় বিক্রি হয় ঠিক সেইভাবে অনেক রাজনীতিবিদ বিক্রি হয়েছিল। সেইভাবেই গঠিত হয়েছিল বিএনপি। আজকে যারা বিএনপির বড় বড় নেতা, তারা সবাই খেলোয়াড়দের মতো রাজনীতির হাটে বিক্রি হওয়া রাজনীতিক। বিএনপি নেতা মওদুদ আহমেদসহ কয়েকজন নেতার নাম উল্লেখ করে হাছান মাহমুদ বলেন, চট্টগ্রামের যারা বিএনপির বড়বড় নেতা তারাও অন্যদল করতেন। আবার কেউ কেউ আওয়ামী লীগেও যোগদান করতে চেয়েছিলেন। আওয়ামী লীগে যোগদান করতে না পেরে তারা বিএনপিতে যোগ দিয়েছেন। এরা সবাই রাজনীতির মাঠে বিক্রি হওয়া ও সুবিধাবাদি রাজনীতিবিদ এবং সুবিধাবাদীদের সমন্বয়ে গঠিত রাজনৈতিক দলের নাম হচ্ছে বিএনপি-বলেন তিনি। তিনি বলেন, বিএনপি-জামায়াতের নেতৃত্বে যে নেতিবাচক রাজনীতি, এটি যদি বাংলাদেশে না থাকতো এবং সময়ে সময়ে ধ্বংসাত্মক রাজনীতি এটি যদি না থাকতো, তাহলে আজকে আমরা আরো বহুদূর এগিয়ে যেতে পারতাম। একই ভাবে গত ১১ বছর ধরে বিএনপি-জামায়াতের যে অপরাজনীতি, ধ্বংসাত্মক রাজনীতি, সবকিছুতে ‘না’ বলার যে রাজনীতি, এই রাজনীতি যদি না থাকতো, তাহলেও দেশ আরো বহুদূর এগিয়ে যেতো। অনুপ্রবেশকারী, সুবিধাবাদীরা যাতে দলকে গিলে ফেলতে না পারে সেদিকে কর্মীদের নজর রাখার উপর গুরুত্বারোপ করে তথ্যমন্ত্রী হাছান মাহমুদ বলেন, অনুপ্রবেশকারী ও সুবিধাবাদীমুক্ত আওয়ামী লীগ গঠন করতে হবে। তিনি বলেন, দেশসেবার জন্য, মানবসেবার জন্য, সমাজসেবার জন্য, সমাজ পরিবর্তনের জন্য, দেশের উন্নতির জন্য রাজনীতি যে একটি ব্রত, এটি অনেক রাজনীতিবিদ ভুলে গেছেন। মানুষও অনেকক্ষেত্রে মনে করে না রাজনীতি যে একটি ব্রত। নুরুল আলম চৌধুরীকে তৃণমূল থেকে উঠে আসা রাজনীতিবিদ উল্লেখ করে আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক বলেন, ’৭৫ এর ১৫ আগস্টের পর আওয়ামী লীগের অনেকে যখন আত্মগোপনে, অনেকে ভয়ে মুখ খুলছে না, অনেকে মোস্তাকের সঙ্গে হাত মিলিয়েছে, তখন পার্লামেন্টে পার্টির সভায় যে কয়জন মোস্তাকের এই কর্মকান্ডের বিরোধিতা করেছিলেন, তাদের মধ্যে নুরুল আলম চৌধুরী একজন। হাছান মাহমুদ বলেন, নুরুল আলম চৌধুরী ছিলেন তেমনই একজন রাজনীতিবিদ, যিনি রাজনীতিকে ব্রত হিসেবে নিয়েছিলেন এবং দল ও নেত্রীর প্রতি তিনি নিষ্ঠাবান ছিলেন। তিনি কখনো দলের বিরুদ্ধে, নেতার সিদ্ধান্তের বিরুদ্ধে যাননি। তথ্যমন্ত্রী বলেন, ২০০৭ সালে বঙ্গবন্ধুকন্যা যখন গ্রেপ্তার হন তখন অনেক নেতা বোল পাল্টিয়েছে। অনেক নেতা ভয়ে মুখ খোলেনি। অনেক নেতা তখন ক্ষমতাসীনদের সাথে হাত মিলিয়েছে। কিন্তু নুরুল আলম চৌধুরী সেই কাজটি করেননি। তাই, নুরুল আলম চৌধুরীর জীবন থেকে অনেক কিছু শেখার আছে বলে বলেন তিনি।