পৃষ্ঠপোষকতা না থাকায় খুঁড়িয়ে খুঁিড়য়ে চলছে মেহেরপুরের তাঁত শিল্প

নুহু বাঙ্গালী ॥ সরকারী পৃষ্ঠপোষকতা ও পুজিঁর অভাবসহ নানা কারনে খুঁড়িয়ে খুড়িয়ে চলছে মেহেরপুরের তাঁত শিল্প। যেগুলো টিকে আছে সেগুলোও প্রায় বন্ধের পথে। বিলুপ্ত প্রায় তাঁত শিল্পকে বাঁচিয়ে রাখতে সব ধরনের সহযোগীর কথা বলছে উপজেলা প্রশাসন। তবে দ্রুত এদের পাশে না দাঁড়ালে হয়তো হারিয়ে যাবে তাঁত শিল্প। গাংনী উপজেলার রাজাপুর গ্রামের সহিদা খাতুন বয়সের ভারে নুয়ে পড়েছেন, অন্য কোন আয়ের উৎস না থাকায় শেষ বয়সে এসেও অবসর সময়ে চালাচ্ছেন তাঁত। আপন মনে বুনাচ্ছেন নানা রঙের গামছা। সংসারের কাজ শেষ করে যে সময়টুকু পান সেই সময়টুকু বসে না থেকে গামছা তৈরী করেন। এখান থেকে যা আয় হয় তা দিয়েই চলে কোন রকম সংসার। একই অবস্থা অন্য তাঁতিদের। তাঁতের পাশাপাশি দিনমুজুর সহ অন্য কাজ করে সংসার চালাচ্ছেন তাঁরা। গ্রামটির চারশ পরিবারের মধ্যে এখন তাঁত আছে মাত্র ৩০ থেকে ৩৫ পরিবারে। এক সময় রাজাপুর গ্রামে প্রায় পাঁচ শতাধিক পরিবার শাড়ি, লুঙ্গি, গামছা, বুনুনে ব্যস্ত থাকলেও তা আজ প্রায় বন্ধের পথে। তাঁত পল্লীতে প্রতিটি বাড়ি থেকেই সকাল থেকে রাত পর্যন্ত তাঁতের খট খট শব্দে মুখর থাকতো। এখানে বুনানো নানা রঙের গামছা কিনে নিয়ে যান বিভিন্ন এলাকার ব্যবসায়ীরা। সুতার দাম বৃদ্ধি সহ গামছা বানিয়ে লাভ না হওয়ায় এ পেশা ছেড়ে অন্য পেশা বেছে নিচ্ছেন কারিগররা। ইতো মধ্যে বন্ধ হয়ে গেছে কয়েকশ তাঁত। যেগুলো আছে সেগুলোতে এখন শুধু গামছা তৈরী করছে কারিগররা।

গৃহবধু সহিদা খাতান জানান, আগে সুতার দাম ছিল কম এতেই সংসার চলতো। তাঁত চালিয়ে ছেলে মেয়েদের বড় করে বিয়ে দিয়েছি। আমাদের কোন জমি জায়গা নাই গামছা বানিয়েই খেতে হয়। এখন সুতার দাম প্রতি বছরই বেশি হচ্ছে। ব্যবসায়ীরা গামছার দাম কম দেয় লাভ হয় না। এখন আমরা কি করে খাব। এ ছাড়া আর আমাদের কোন উপায় নাই। বাধ্য হয়েই তাঁত চালাতে হয়।

একই কথা জানালেন অন্য কারিগররাও, আগে সুতার দাম কম ছিল আমাদের লাভ হতো এখন আর আমাদের লাভ হয় না। ২৫ বছর ধরে এই কাজ করে আর সংসার চলে না তাই এখন গরু ছাগল পালনের পাশাপাশি পুরুষরা মিস্ত্রির কাজে যায়। কেউ গাড়ি চালায় কেউ রিক্স চালায় এভাবেই চলে। এইতা করে সংসার চালানো যাবে না, চলছে না বলে অনেকেই বন্ধ করে দিয়ে জনখাটে। সুতার দাম বেশি এইতা করে আমাদের লাভ নাই। চারটা গামছা বানিয়ে ৩৫ টাকা থাকে কিন্তুু বানাতে অনেক কষ্ট করতে হয়। গাংনী উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা দিলারা রহমান বলেন, আমাদের এখানে দেশীয় যে শিল্পগুলো বিশেষ করে তাঁত শিল্প, মৃৎ শিল্প এগুলো যেন যুগ যুগ ধরে বেঁচে থাকে এবং আমাদের যে সংস্কৃতি ও ঐতিহ্য তা সারা বিশে^ ছড়িয়ে পড়ে এ বিষয়ে আমরা সদা তৎপর রয়েছি। সেই মুল্যেবোধ বা স্পর্শকাতর অনুভুতির জায়গা থেকে আমরা চাই যারা তাঁত শিল্প জড়িয়ে আছে তারা যেন সর্বোচ্চ সরকারী সুবিধায় অংশিদার হতে পারে। এবং তাঁত শিল্পকে টিকিয়ে রাখার জন্য উপজেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে সব ধরনের সহযোগীতা করা হবে।

ঝিনাইদহে জাসদের ৪৭তম প্রতিষ্ঠা বার্ষিকী পালন

ঝিনাইদহ প্রতিনিধি ॥ ঝিনাইদহে বর্ণাঢ্য আয়োজনে জাসদের ৪৭তম প্রতিষ্ঠা বার্ষিকী পালন করা হয়েছে। গতকাল বৃহস্পতিবার সকাল ১১টায় প্রতিষ্ঠা বার্ষিকী উপলক্ষে ঝিনাইদহ কেন্দ্রীয় শহীদ মিনার থেকে একটি র‌্যালী বের করা হয় এবং র‌্যালীটি পুরাতন ডিসি কোর্ট মোড় ঘুরে পুনরায় শহীদ মিনারে এসে শেষ হয়। র‌্যালী শেষে সংক্ষিপ্ত সমাবেশ অনুষ্ঠিত হয়। ঝিনাইদহ সদর উপজেলা জাসদের সভাপতি ও সম্মেলন প্রস্তুত কমিটির আহবায়ক চন্দন চক্রবর্তীর সভাপতিত্বে বক্তব্য রাখেন কেন্দ্রীয় জাতীয় যুবজোটের সাংগঠনিক সম্পাদক শামীম আক্তার বাবু, ঝিনাইদহ জেলা জাসদের সাংগঠনিক সম্পাদক মনিরুজ্জামান মানিক, শৈলকুপা উপজেলা জাসদের সভাপতি সরাফত হোসেন, সাধারণ সম্পাদক আব্দুল আজিজ খান, ঝিনাইদহ সদর উপজেলা জাসদের সাধারণ সম্পাদক মনিরুজ্জামান উজ্জল, মহেশপুরের সভাপতি আব্দুল জলিল মিয়া, কোটচাদপুরের সাধারণ সম্পাদক জহুরুল ইসলাম পান্নু, ঝিনাইদহ জেলা ছাত্রলীগের সভাপতি বিদ্যুৎ হোসেন ও সাধারণ সম্পাদক রোকনুজ্জামান প্রমূখ।

কালুখালীর সায়েস্তাপুর মডেল একাডেমীর শিক্ষা ব্যবস্থায় ব্যাপক সাফল্য

ফজলুল হক ॥ রাজবাড়ী জেলাধীন কালুখালীতে উপজেলার মৃগী ইউপির সায়েস্তাপুর মডেল একাডেমীর শিক্ষা ব্যবস্থায় ব্যাপক সাফল্য অর্জন করে চলেছে। গ্রামের মধ্যে মনোরম পরিবেশে প্রতিষ্ঠাতা পরিচালক শিক্ষানুরাগী সমাজসেবক বাংলাদেশ কিন্ডার গার্টেন ওনার্স এসোসিয়েশনের রাজবাড়ী জেলা শাখার সভাপতি  মোঃ আবুল হাসেমের প্রচেষ্টায় ২০১৭ সালে এ মডেল একাডেমী প্রতিষ্ঠিত হয়ে প্লে থেকে ২য় শ্রেণী পর্যন্ত সুন্দরভাবে পাঠদান করে আসছে। আগামী ২০২০  শিক্ষাবর্ষে এ প্রতিষ্ঠানে প্লে থেকে ৮ম শ্রেণী পর্যন্ত ছাত্র-ছাত্রী ভর্তি চলবে। গতকাল বৃহস্পতিবার সরেজমিনে গিয়ে একাডেমীর শিক্ষকমন্ডলীদের শৃঙ্খলার সাথে পাঠদান করতে দেখা যায়। এসময় শিক্ষক লতিফা খাতুন, শাহিনুর রহমান, মিতু সুলতানা, আর্জিনা খাতুন, রিপা পারভীন ও ওমর আলীসহ এলাকার সুধীজন উপস্থিত ছিলেন। স্কুল পরিচালনার ব্যাপারে প্রতিষ্ঠাতা পরিচালক আবুল হাসেম বলেন গ্রাম পর্যায়ে শিক্ষার আলো ছড়াতে বর্তমান সরকারের সুদূর প্রসারী পরিকল্পনা বাস্তবায়নের জন্য তিনি নিজ উদ্যোগে নিরলসভাবে কাজ করে চলেছেন এবং  ছাত্র-ছাত্রীদের যাতায়াতের জন্য তিনি ফ্রি ভ্যান এর ব্যবস্থা করছেন। এবং এলাকার সুবিধা বঞ্চিত শিক্ষার্থীদের আধুনিক শিক্ষা ব্যবস্থা প্রদানের জন্য কাজ করে চলেছেন।

থানায় সাধারণ ডায়েরী

কুষ্টিয়া সদরের স্বস্তিপুর মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক রুহুল আমিনকে হত্যার উদ্দেশ্যে হামলা

নিজ সংবাদ ॥ কুষ্টিয়া সদর উপজেলার স্বস্তিপুর মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের সাময়িক বরখাস্তকৃত প্রধান শিক্ষক রুহুল আমীনকে হত্যার উদ্দেশ্যে হামলা চালিয়েছে খোরশেদ বাহিনীর সশস্ত্র ক্যাডাররা। এ হামলার বিষয়ে শিক্ষক রুহুল আমীন গতকাল বৃহস্পতিবার কুষ্টিয়া মডেল থানায় তার নিজের, পরিবার ও শিক্ষক-কর্মচারীদের নিরাপত্তা চেয়ে একটি সাধারণ ডায়েরী করেছে। যার নং-১৬৪২।

প্রধান শিক্ষক (সাময়িক বরখাস্ত) রুহুল আমীন তার জিডিতে উল্লেখ,  গত ৩০ অক্টোবর সকাল আনুমানিক সাড়ে ১১টার সময় সদর উপজেলার বটতৈল ইউনিয়নের ৩নং ওয়ার্ডের শিমুলিয়া মোড়ে” মোটর সাইকেল যোগে কুষ্টিয়া থেকে বিদ্যালয়ের উদ্দ্যেশে যাত্রার সময় পথের মাঝে খোরশেদ বাহিনীর একদল সশস্ত্র ক্যাডার (১) রাজ্জাক মেম্বর (২) জয়নাল (৩) আরিফ খাঁ (খোরশেদের ছেলে) (৪) আকমল খার ছেলে সোহান (৫) আব্বাস (বোমা লাদেন) সহ ১৫/২০ জন তার প্রাণনাশের উদ্দ্যেশে বটতৈল শিশিরমাঠ শিমুলিয়া মোড়ে মোটর সাইকেলের গতিরোধ করে। এ সময় তারা আতর্কিতভাবে রুহুল আমীনের উপর হামলা চালায়। এ সময় পথচারী ও জনতা এগিয়ে এসে সশস্ত্র হামলাকারীদের হাত থেকে শিক্ষক রুহুল আমীনকে রক্ষা করে।  জিডিতে আরো উল্লেখ করা হয়- হামলাকারীরা স্কুল ম্যানেজিং কমিটির নির্বাচনী প্রচারণাকে কেন্দ্র করে সাধারন অভিভাবক ভোটারদের সাথে বাকবিতন্ডার রেশ ধরে আক্রোশের বশীভূত হয়ে এই অতর্কিত হামলা চালায়।

মিরপুরে জাসদের ৪৭তম প্রতিষ্ঠা বার্ষিকী পালন

মিরপুর প্রতিনিধি ॥ আন্দোলন-সংগ্রামে গৌরবোজ্জ্বল ভূমিকার  প্রেক্ষাপটে কুষ্টিয়ার মিরপুরে গতকাল বৃহস্পতিবার পালিত হয়েছে জাতীয় সমাজতান্ত্রিক দল জাসদের ৪৭তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী। দিবসটি পালন উপলক্ষে উপজেলা জাসদের দলীয় কার্যালয় থেকে একটি বর্নাঢ্য র‌্যালী বের হয়ে মিরপুর বাজারের প্রধান প্রধান সড়ক প্রদক্ষিণ শেষে দলীয় কার্যালয় প্রাঙ্গণে এক আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়। উপজেলা জাসদের সভাপতি বীর মুক্তিযোদ্ধা আলহাজ্ব মহাম্মদ শরীফের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি’র বক্তব্য দেন, জাসদ কেন্দ্রীয় কমিটির অন্যতম সদস্য মহাম্মদ আব্দুল্লাহ। প্রধান বক্তা ছিলেন, উপজেলা জাসদের সাধারন সম্পাদক আহাম্মদ আলী। উপজেলা জাসদের সাংগঠনিক সম্পাদক আফতাব উদ্দিনের সঞ্চালনে বিশেষ অতিথি ছিলেন উপজেলা জাসদের সহ-সভাপতি সাইদুর রহমান চেয়ারম্যান, যুগ্ম সাধারন সম্পাদক কারশেদ আলম, জাসদ নেতা অধ্যক্ষ শাজাহান আলী, অধ্যক্ষ শরিফুল ইসলাম ও অধ্যক্ষ মাসুদুর রহমান ঝন্টু। এসময় উপস্থিত ছিলেন, জাসদ নেতা কুর্শা ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান ওমর আলী, তালবাড়ীয়া ইউনিয়ন জাসদের অন্যতম  নেতা নিজাম উদ্দিন কবিরাজ, মালিহাদ ইউনিয়ন জাসদ নেতা বীরমুক্তিযোদ্ধা আব্দুল গনি, ছাতিয়ান ইউনিয়ন জাসদ নেতা আব্দুল জলিল, ধুবইল ইউনিয়ন জাসদ নেতা জালাল উদ্দিন মেম্বার, আব্দুল আওয়াল, বহলবাড়ীয়া ইউনিয়ন জাসদের সভাপতি সাইদুর রহমান মন্টু, আমলা ইউনিয়ন জাসদের সভাপতি আজাম্মেল হক, সদরপুর ইউনিয়ন জাসদের সভাপতি ছাবদার হোসেন মেম্বার, কুর্শা ইউনিয়ন জাসদের সভাপতি জামিরুল ইসলাম মেম্বার, ছাতিয়ান ইউনিয়ন জাসদের সাধারন সম্পাদক জাহিদুল ইসলাম, চিথলিয়া ইউনিয়ন জাসদের সাধারন সম্পাদক হাবিবুর রহমান হাবিব, উপজেলা জাতীয় নারী জোটের নেত্রী শেফালী বেগম,  রোমানা মেম্বার, লিপি খাতুন, লাভলী ইয়াসমিন, উপজেলা জাতীয় যুবজোটের সভাপতি নাজমুল হোসেন, বাংলাদেশ ছাত্রলীগের মিরপুর উপজেলা শাখার সভাপতি মীর মুখতিসুর রহমান মির্জা প্রমুখ। এছাড়াও উপজেলা জাসদ, জাতীয় নারী জোট, জাতীয় যুব জোট ও বাংলাদেশ জাসদ ছাত্রলীগের বিভিন্ন পর্যায়ের নেতৃবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন। উল্লেখ্য, ১৯৭২ সালের ৩১ অক্টোবর রাজধানীর পল্টন ময়দানে এক জনসভা করে শ্রেণিহীন সমাজ ব্যবস্থা তথা বৈজ্ঞানিক সমাজতন্ত্র প্রতিষ্ঠার ঘোষণা দিয়ে দলটি আত্মপ্রকাশ করে। জাসদ দীর্ঘ ৪৭ বছরের পথপরিক্রমায় গণতন্ত্র ও  স্বৈরাচারবিরোধী বিভিন্ন আন্দোলন-সংগ্রামে গুরুত্বপূর্ণ অবদান রেখেছে।

দৌলতপুরে জাসদের ৪৭তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী পালন

দৌলতপুর প্রতিনিধি ॥ কুষ্টিয়ার দৌলতপুরে জাতীয় সমাজতান্ত্রিক দল জাসদের ৪৭তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী পালিত হয়েছে। এ উপলক্ষে গতকাল বৃহস্পতিবার বিকেলে উপজেলার আড়িয়া ইউনিয়নের লালনগর সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয় চত্বরে আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়। স্থানীয় জাসদ নেতা এমারত মালিথার সভাপতিত্বে আলোচনা সভায় প্রধান অতিথি ছিলেন উপজেলা জাসদের সভাপতি সঈর উদ্দীন, সাধারণ সম্পাদক আশরাফুল ইসলাম নান্নু মাষ্টার, যুগ্মসম্পাদক রকিবুল ইসলাম মাষ্টার, সাংগঠনিক সম্পাদক সাইদুর রহমান, আব্দুল আজিজ, চাঁদ মাহমুদ, আতিয়ার রহমান, ফজল হক, হাফিজুর রহমান মাষ্টার, মাহাবুল হক, আলমগীর হোসেন, সোহেল আহম্মেদ, ছাত্রলীগ নেতা লিটন, মশিউর রহমান বিকাশ, হাসানুজ্জামান রনি ও রোমন সরদার।

খালেদা জিয়ার চিকিৎসা নিয়ে মিথ্যাচার করে তিনি পোশাকের অমর্যাদা করেছেন ঃ রিজভী

ঢাকা অফিস ॥ খালেদা জিয়ার চিকিৎসা নিয়ে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ের (বিএসএমএমইউ) পরিচালক ব্রিগেডিয়ার জেনারেল একে মাহবুবুল হক মিথ্যাচার করেছেন বলে অভিযোগ করেছে বিএনপি। সাবেক প্রধানমন্ত্রীর অসুস্থতা নিয়ে অসৌজন্যমূলক বক্তৃতা দিয়ে সেনাবাহিনীর একজন উচ্চপদস্থ কর্মকর্তা এবং চিকিৎসক হিসেবে তিনি পোশাকের অবজ্ঞা করেছেন বলেও অভিযোগ করেছে দলটি। বৃহস্পতিবার রাজধানীর নয়াপল্টনে বিএনপির কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে আয়োজিত এক সংবাদ সম্মেলনে দলের পক্ষে এ অভিযোগ করেন সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী। তিনি বলেন, বিএসএমএমইউর পরিচালক বলেন, ‘খালেদা জিয়া প্রস্তুতি নিতে ২টা-আড়াইটা বেজে যায়, অনেক সময় ৪টা পর্যন্ত অপেক্ষা করতে হয় চিকিৎসকদের’। পরিচালকের এ বক্তব্য সত্যের অপলাপ। রিজভী বলেন, বিএনপি চেয়ারপারসন সাবেক প্রধানমন্ত্রী খালেদা জিয়ার চিকিৎসা নিয়ে এটি শুধু ডাহা মিথ্যাচারই নয়, সাবেক প্রধানমন্ত্রীর অসুস্থতা নিয়ে একটি চিকিৎসা প্রতিষ্ঠানের পরিচালক সরকারের পঙ্কিল রাজনৈতিক আবর্তের মধ্যে ঢুকে পড়বেন এটি কেউ প্রত্যাশা করেনি। প্রধানমন্ত্রীর উৎসাহ ও প্রণোদনায় পিজির পরিচালক সাবেক প্রধানমন্ত্রীর অসুস্থতা নিয়ে অসৌজন্যমূলক বক্তব্য রেখেছেন। নীতিনৈতিকতা, আদর্শের ওপরে কেউ কেউ নিজের ব্যক্তি স্বার্থকে গুরুত্ব দেন। সেনাবাহিনীর একজন উচ্চপদস্থ কর্মকর্তা এবং চিকিৎসক হিসেবে এ দুটি উচ্চমানের পেশাকের তিনি অবজ্ঞা করেছেন। রিজভী বলেন, আমরা খোঁজ নিয়ে জেনেছি, খালেদা জিয়া রোজ সকালের দিকেই রেডি হয়ে যান ইনস্যুলিন নিতে, চিকিৎসা নিতে, তিনি চিকিৎসকদের অপেক্ষায় বসে থাকেন কিন্তু চিকিৎসকরা দুপুর ১২টা থেকে ১টার আগে তার কেবিনে আসেন না। আমি পরিচালক সাহেবকে চ্যালেঞ্জ করে বলছি, বিকাল ৪টা পর্যন্ত কবে কোন কোন ডাক্তার দেশনেত্রীর চিকিৎসার জন্য অপেক্ষা করেন, তাদের নাম জনগণকে বলুন। তিনি দেশনেত্রীর চিকিৎসা নিয়ে সরকারের বক্তব্য তোতা পাখির মতো বলছেন। বিএসএমএমইউ পরিচালকসহ চিকিৎসকদের সমালোচনা করে রিজভী আরও বলেন, তারা বলছেন, দেশনেত্রীর সুগার নিয়ন্ত্রণে, আসলে সকালের ফাস্টিংয়ে সুগার ১১-১৪ এর মধ্যে থাকে। তা হলে পরিচালক সাহেব এটিকে কীভাবে নিয়ন্ত্রণ বলছেন। গতকালও তার সুগার ছিল নিয়ন্ত্রণের বাইরে। দেশনেত্রীর বাই ল্যাটারাল ফ্রোজেন সোল্ডার অর্থাৎ দুটি হাতের সোল্ডার জয়েন্টই ফ্রোজেন হয়ে গেছে। তার রিস্ট জয়েন্ট এবং হাতের স্মল জয়েন্টগুলো বাঁকা হয়ে যাচ্ছে। তিনি হাইলি অ্যাকটিভ ডিফরমিং, রিমেটয়েড আর্থ্রাইটিস, হাইপারটেনশন, অ্যাডহেসিভ ক্যাপসুলাইটিসসহ বিভিন্ন রোগে ভুগছেন। তিনি জেলখানায় সঠিক চিকিৎসা না পাওয়ায় এবং স্বাভাবিক পরিবেশ না থাকায় এসব রোগসংক্রান্ত বিভিন্ন জটিলতা দেখা দিয়েছে। এক দুর্বিষহ অসুস্থার মধ্যে দেশনেত্রী খালেদা জিয়া দিনযাপন করছেন। তার কোনো চিকিৎসাই হচ্ছে না। জীবন-মৃত্যু নিয়ে আমাদের কিছুই করার নেই বিএসএমএমইউ পরিচালকের এমন বক্তব্যের সমালোচনা করে রিজভী বলেন, বিএসএমএমইউ পরিচালক প্রেস কনফারেন্স করে প্রমাণ করলেন যে, খালেদা জিয়া অসুস্থ। পরিচালকের বক্তব্যে মনে হয়েছে পিজিতে বেগম জিয়ার সঠিক চিকিৎসা হবে না। দেশনেত্রীর জীবন নিয়ে যে ছিনিমিনি চলছে, সেটি পরিচালকের বক্তব্যের মধ্যেই নিহিত রয়েছে। একটা নীলনকশা অনুযায়ী যে খালেদা জিয়ার চিকিৎসা নিয়ে তাচ্ছিল্য করা হচ্ছে-এটির প্রমাণ। তিনি বলেছেন- জীবন-মৃত্যু নিয়ে আমাদের কিছু করার নেই। এই বক্তব্য বিএনপি নেতাকর্মীসহ দেশবাসীর মধ্যে ভয়াবহ আশঙ্কা ও উদ্বেগ সৃষ্টি করেছে। আমি অবিলম্বে দেশনেত্রী খালেদা জিয়ার নিঃশর্ত মুক্তি দাবি করছি।

গাংনীতে এমপি সাহিদুজ্জামান খোকনকে সংবর্ধনা

গাংনী প্রতিনিধি ॥ মেহেরপুর-২ (গাংনী) আসনের জাতীয় সংসদ সদস্য ও গাংনী উপজেলা আ.লীগের সভাপতি  মোহাম্মদ সাহিদুজ্জামান খোকনকে সংবর্ধনা প্রদান করা হয়েছে। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নির্দেশে এশিয়ান পার্লামেন্ট গ্রান্ট এসেম্বলী অব তুরস্ক বক্তব্য শেষে সংসদ সদস্য সাহিদুজ্জামান খোকন-এর বাংলাদেশে প্রত্যাবর্তন উপলক্ষে সংবর্ধনার আয়োজন করা হয়। গতকাল বৃহস্পতিবার বিকেলে গাংনী উপজেলা শহরের বাসস্ট্যান্ডের রেজাউল চত্বরে সংবর্ধনা অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়। গাংনী উপজেলা আ.লীগ সংবর্ধনার আয়োজন করে। অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন উপজেলা আ’লীগের সাধারণ সম্পাদক গোলাম মোস্তফা। সংবর্ধনা অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্য রাখেন সংবর্ধিত ব্যক্তিত্ব মোহাম্মদ সাহিদুজ্জামান খোকন। অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি হিসাবে বক্তব্য রাখেন- মেহেরপুর জেলা আ.লীগের সিনিয়র সহ-সভাপতি ও বামন্দী ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান শহিদুল ইসলাম বিশ্বাস, গাংনী পৌরসভার মেয়র আশরাফুল ইসলাম, গাংনী উপজেলা আ.লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক মনিরুজ্জামান, জেলা আ’লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক মখলেছুর রহমান মুকুল। এ সময় বক্তব্য রাখেন মেহেরপুর জেলা পরিষদের প্যানেল  চেয়ারম্যান তৌহিদ-মুর্শেদ  অতুল বিশ্বাস, সাবেক মুক্তিযোদ্ধা কমান্ডার আমিরুল ইসলাম, জেলা আ’লীগের ত্রাণ ও সমাজ কল্যাণ বিষয়ক সম্পাদক ও কাথুলী ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান মিজানুর রহমান রানা, জেলা পরিষদের সদস্য মজিরুল ইসলাম, জেলা আ.লীগের মহিলা  বিষয়ক সম্পাদক নুরজাহান বেগম, আ’লীগ নেতা মনিরুজ্জামান আতু, গাংনী উপজেলা বিআর ডিবি চেয়ারম্যান আলী আজগর, গাংনী  উপজেলা স্বেচ্ছাসেবকলীগের আহবায়ক আবুল বাসার প্রমুখ।   গাংনী উপজেলা ছাত্রলীগের সাবেক সভাপতি হাসন রাজা সেন্টুর সঞ্চালনায়- অন্যান্যদের মধ্যে বক্তব্য রাখেন, মটমুড়া  ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান সোহেল আহমেদ, সাহারবাটি ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান গোলাম ফারুক, রাইপুর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান গোলাম সাকলায়েন ছেপু। এছাড়াও বক্তব্য রাখেন জেলা ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক মুন্তাসির জামান মৃদুল,গাংনী সরকারী ডিগ্রী কলেজ ছাত্রলীগের সভাপতি হাসিবুল ইসলাম হাসিব, ইসমাইল হোসেন প্রমুখ। সংবর্ধনা অনুষ্ঠানে জেলা ও উপজেলা আ.লীগের নেতৃবৃন্দ ও আ.লীগের অঙ্গ ও সহযোগী সংগঠনের নেতৃবৃন্দসহ ইউনিয়ন ও ওয়ার্ড পর্যায়ের নেতা-কর্মীরা উপস্থিত ছিলেন।

মুজিবনগরে বৃদ্ধাকে হত্যা করে ছাগল ছিনতাই

মেহেরপুর প্রতিনিধি ॥ মেহেরপুরের মুজিবনগর উপজেলার বাগোয়ান গ্রামে মাঠে ছাগল চরাতে গিয়ে সফেদা খাতুন (৭০) নামের এক বৃদ্ধা নিখোঁজ হয়। নিখোঁজের পর মাঠের একটি ঝোপ থেকে তার লাশ উদ্ধার করে পুলিশ। বৃদ্ধা সফেদা বাগোয়ান গ্রামের মৃত আব্দুল জলিলের স্ত্রী। ছিনতাইকারীরা বৃদ্ধা সফেদাকে হত্যা করে তার ২টি ছাগল ছিনতাই করে নিয়ে গেছে বলে ধারণা করছে এলাকাবাসি।  মুজিবনগর থানা পুলিশের একটিদল লাশ উদ্ধার করে গতকাল বৃহস্পতিবার সকালে মেহেরপুর জেনারেল হাসপাতাল মর্গে ময়না তদন্ত শেষে তার পরিবারের কাছে হস্তান্তর করে। স্থানীয়রা জানান সফেদা খাতুনের ৯টি ছাগল রয়েছে। ছাগল পালন করেই সে জীবিকা নির্বাহ করেন। সবেদা বুধবার বিকেলে গ্রামের মাঠে ছাগল চরাতে যান। সন্ধ্যায় তার ৭টি ছাগল বাড়িতে ফিরলেও বাকী ২টি ছাগল ও সবেদা ফিরে আসেননি। পরে সন্ধ্যায় পরিবারের লোকজন মাঠে খোঁজাখুজি করে একটি ঝোপের মধ্য তার লাশ পড়ে থাকতে দেখে। খবর পেয়ে মুজিবনগর থানা পুলিশ উদ্ধার করে থানায় নিয়ে যায়। মুজিনগর থানার ওসি আব্দুল হাশেম জানান প্রাথমিকভাবে মনে হচ্ছে, শ্বাসরোধে সফেদাকে হত্যা করা হয়েছে। যেহেতু তার শরীরে আঘাতের চিহ্ন রয়েছে। তবে ঘটনার সাথে জড়িতদের সনাক্ত করে আটকের চেষ্টা অব্যাহত রয়েছে।

মিজানুর রহমান মজনু’র আকস্মিক মৃত্যুতে দোকান মালিক কল্যাণ সমিতির শোকসভা ও দোয়া মাহফিল অনুষ্ঠিত

কুষ্টিয়া দোকান মালিক কল্যাণ সমিতির সাংগঠনিক সম্পাদক মিজানুর রহমান মজনু’র আকস্মিক মৃত্যুতে শোকসভা ও দোয়া মাহফিল অনুষ্ঠিত হয়েছে। গতকাল বৃহস্পতিবার বিকেল সাড়ে ৪টায় বঙ্গবন্ধু সুপার মার্কেটের ৩য় তলায় দোকান মালিক কল্যাণ সমিতির নিজ কার্যালয়ে এই শোকসভা ও দোয়া মাহফিল অনুষ্ঠিত হয়। এসময় উপস্থিত ছিলেন দোকান মালিক কল্যাণ সমিতির উপদেষ্টা হাফিজুর রহমান হেলাল ও আমিনুর রহিম পল্লব, সভাপতি আনোয়ার হোসেন, সহ-সভাপতি টিটু মোল্লা, সাধারণ সম্পাদক মকবুল হোসেন, যুগ্ম সম্পাদক তপন আহমেদ, ইয়াসিন আলী, কামরুজ্জামান নান্টু ও রাসেল কবির, সহ-সাংগঠনিক সম্পাদক মকছেদুল হক কল্লোল ও নেহেরুল ইসলাম, প্রচার সম্পাদক মিজানুর রহমান মিলন, সদস্য আব্দুল আলিম দিপু, ইনামুল কবির ইমন প্রমুখ। শোকসভা ও দোয়া মাহফিল পরিচালনা করেন কুষ্টিয়া কেন্দ্রীয় জামে মসজিদের ইমাম আসাদুজ্জামান। সার্বিক তত্ত্বাবধায়নে ছিলেন দোকান মালিক কল্যাণ সমিতির কোষাধ্যক্ষ হাসান আলী। এসময় মরহুম মিজানুর রহমান মজনু’র বিদেহী আত্মার মাগফেরাত কামনা করা হয়। সংবাদ বিজ্ঞপ্তি

দৌলতপুর সীমান্তে ফেনসিডিল ও মদ উদ্ধার

দৌলতপুর প্রতিনিধি ॥ কুষ্টিয়ার দৌলতপুর সীমান্তে সীমান্তরক্ষী বিজিবি’র পৃথক অভিযানে ৩৩ বোতল ফেনসিডিল ও ৭০ বোতল মদ উদ্ধার হয়েছে। ৪৭ বিজিবি অধিনস্থ জামালপুর বিওপি’র টহল দল বুধবার রাত সোয়া ১২টার দিকে জামালপুর আমবাগানে অভিযান চালিয়ে ৩৩ বোতল ফেনসিডিল উদ্ধার করেছে। অপরদিকে চরচিলমারী বিওপি’র টহল দল একইদিন রাত ৮টার দিকে ডিগ্রিরচর মাঠে অভিযান চালিয়ে ৭০ বোতল ভারতীয় মদ উদ্ধার করেছে। তবে উদ্ধার করা মাদকের সাথে জড়িত কেউ আটক হয়নি।

কুষ্টিয়া পৌরসভার আয়োজনে জাতীয় স্যানিটেশন মাস উদযাপন

গতকাল সকালে কুষ্টিয়া পৌরসভার আয়োজনে জাতীয় স্যানিটেশন মাস উপলক্ষে “ সকলের জন্য উন্নত স্যানিটেশন, নিশ্চিত হোক সুস্থ জীবন” এই শ্লোগানকে সামনে রেখে র‌্যালি ও আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়েছে। তৃতীয় নগর পরিচালন ও অবকাঠামো উন্নতিকরণ (সেক্টর) প্রকল্পের (ইউজিআইআইপি-৩)  সহযোগিতায় আয়োজিত এই র‌্যালির নেতৃত্ব দেন কুষ্টিয়া পৌরসভার জননন্দিত মেয়র আনোয়ার আলী। বিভিন্ন ব্যানার, ফেস্টুন হাতে ও ক্যাপ পরিহিত অবস্থায় পৌরসভার বিজয় উল্লাস চত্তর হতে র‌্যালিটি বের হয়ে শহরের প্রধান প্রধান সড়ক প্রদক্ষিন করে পৌরসভার মেয়র ভবনের সামনে এসে শেষ হয়। পরে সংক্ষিপ্ত আলোচনা সভায় আলোচনা করেন কুষ্টিয়া পৌরসভার মেয়র আনোয়ার আলী। মেয়র তার বক্তব্যে বলেন, সকলের জন্য উন্নত স্যানিটেশন নিশ্চিতের লক্ষ্যে আমরা দীর্ঘদিন যাবৎ কাজ করে যাচ্ছি। বর্তমানে আমরা শহরের দারিদ্র জনগোষ্ঠির ছেলে-মেয়েদের লেখাপড়ায় আর্থিক সহযোগিতা, হাতের কাজের প্রশিক্ষন ও তাদেরকে আর্থিকভাবে সাবলম্বি হওয়ার জন্য অর্থ সহযোগিতার এর পাশাপাশি নিরাপদ স্যানিটেশন নিশ্চিত করার লক্ষে কাজ করে যাচ্ছি। মেয়র  পৌরবাসীর উদ্দেশ্যে বলেন, আমরা সবাই স্বস্ব অবস্থান থেকে স্যানিটেশন বিষয়ে সচেতনতার বৃদ্ধির জন্য কাজ করতে পারি।  সেই সাথে সঠিকভাবে টয়লেট ব্যবহার নিশ্চিত করে সুস্থ-সবল দেহ গড়তে পারি। এছাড়াও বক্তব্য রাখেন পৌরসভার প্যানেল অব মেয়র-২ সাইফ-উল-হক মুরাদ। এসময় উপস্থিত ছিলেন  পৌর পরিষদের সদস্যবৃন্দ। এছাড়াও উপস্থিত ছিলেন কুষ্টিয়া পৌরসভার নির্বাহী প্রকৌশলী রবিউল ইসলাম, সহকারী প্রকৌশলী (পূর্ত) ওয়াহেদুর রহমান, সহকারী প্রকৌশলী (পানি) আবুল কাশেম সহ কুষ্টিয়া পৌরসভা ও পৌরসভায় পরিচালিত বিভিন্ন প্রকল্পের কর্মকর্তা-কর্মচারীবৃন্দ। আলোচনা সভা পরিচালনা করেন বস্তি উন্নয়ন কর্মকর্তা একেএম মঞ্জুরুল ইসলাম। সংবাদ বিজ্ঞপ্তি

গাংনীতে পানিতে ডুবে শিশুর মৃত্যু

গাংনী প্রতিনিধি ॥ মেহেরপুরের গাংনী উপজেলার ষোলটাকা ইউনিয়নের বানিয়াপুকুর গ্রামের পানিতে ডুবে মেঘেরাজ (৪) নামের এক শিশুর মৃত্যু হয়েছে। সে বানিয়াপুকুর গ্রামের প্রবাসী বাবলু মিয়ার ছেলে। গতকাল বৃহস্পতিবার দুপুরের দিকে বানিয়াপুকুর গ্রামে এ ঘটনা ঘটে।  স্থানীয়রা জানান, মেঘেরাজ বাড়ির পাশে একটি পুকুরপাড়ে খেলা খেলা করছিল। অসাবধানবশত পুকুরের পানিতে পড়ে গিয়ে তার মৃত্যু হয়।  মেঘেরাজের পরিবারের সদস্যরা জানায়, মেঘেরাজকে দীর্ঘ সময় সন্ধান করে কোথাও না পেয়ে পুকুর পাড় এলাকায় খুঁজতে গেলে, তার ভাসমান লাশ চোখে পড়ে।

ব্যবসা করবেন টাকা দেবেন না, তা হয় না – গ্রামীণফোনকে আদালত

ঢাকা অফিস ॥ বাংলাদেশ টেলিযোগাযোগ নিয়ন্ত্রক সংস্থা বিটিআরসির পাওনা সাড়ে ১২ হাজার কোটি টাকার মধ্যে গ্রামীণফোন (জিপি) আপাতত কত টাকা দিতে পারবে- তা জানাতে বেসরকারি মোবাইল ফোন অপারেটরটিকে দুই সপ্তাহের সময় দিয়েছেন আপিল বিভাগ। আগামী ১৪ নভেম্বর এ মামলার আদেশের জন্য দিন রেখেছেন আদালত। গ্রামীণফোনের আইনজীবীদের সময় আবেদনের প্রেক্ষিতে প্রধান বিচারপতি সৈয়দ মাহমুদ হোসেনের নেতৃত্বাধীন আপিল বিভাগের ছয় বিচারপতির বেঞ্চ বৃহস্পতিবার এ আদেশ দেন। এর আগে দাবিকৃত সাড়ে ১২ হাজার কোটি টাকা প্রদানের জন্য ২ এপ্রিল গ্রামীণফোনকে চিঠি দেয় বিটিআরসি। ওই চিঠির বিরুদ্ধে ঢাকার নিম্ন আদালতে মামলা করে ফোন কোম্পানিটি। এতে টাকা প্রদানের ওপর নিষেধাজ্ঞা চাওয়া হয়। গত ২৮ আগস্ট আদালত মামলা খারিজ করে দেয়। এর বিরুদ্ধে হাইকোর্টে আবেদন করে গ্রামীণফোন। ওই আবেদন গ্রহণ করে বিটিআরসির চিঠি স্থগিত করে দেয় হাইকোর্ট। এর বিরুদ্ধে আপিল বিভাগে যায় বিটিআরসি। গত ২৪ অক্টোবর আপিল বিভাগ এক আদেশে বলেন, জিপি এই মুহূর্তে কত টাকা বিটিআরসিকে দিতে পারবে- তা জানাতে হবে। শুনানিকালে গ্রামীণফোনের আইনজীবীদের উদ্দেশে প্রধান বিচারপতি বলেন, এ দেশে ব্যবসা করাটা সহজ। যখন টাকা-পয়সার ব্যাপার আসে তখন আদালতে এসে একটা আবেদন করে স্থগিতাদেশ নিয়ে টাকা দেয়া হয় না। গড়িমসি করা হয়। মামলাগুলো করাই হয় যাতে টাকা দিতে না হয়। এ সব মামলার কারণে অর্থঋণ আদালতগুলোতে প্রায় এক লাখ কোটি টাকা আটকে আছে। প্রধান বিচারপতি বলেন, ব্যবসা করবেন টাকা দেবেন না- তা হয় না।

সেই প্রেক্ষিতে বৃহস্পতিবার এ মামলার শুনানিতে গ্রামীণফোনের কৌঁসুলি এএম আমিনউদ্দিন বলেন, অর্থ মন্ত্রণালয়ের সঙ্গে এক বৈঠকে একশ’ কোটি টাকা দেয়া নিয়ে আলোচনা চলছিল। সেই প্রেক্ষিতে ওই টাকা দিব। আদালত বলেন, সাড়ে ১২ হাজার কোটি টাকা পাবে, আর আপনি বলছেন একশ’ কোটি। ওইখানে কমপ্রোমাইজ করবেন আর আদালতে এসে মামলা করবেন সেটা হতে পারে না।আমিনউদ্দিন বলেন, তারা সিদ্ধান্ত না মানায়আদালতে এসেছি। টাকা দেব না এ কথা তো কখনও বলিনি।আরেক আইনজীবী শেখ ফজলে নূর তাপস বলেন, বিটিআরসির দাবিকৃত টাকার ভিত্তি আছে কিনা- সেটা আদালতের দেখা দরকার। একটা বহুজাতিক কোম্পানি এ দেশে ব্যবসা করতে এসেছে। লেভেল প্লেয়িং ফিল্ড না হলে বিদেশি বিনিয়োগ আসবে না। এর আগে জিপি ২১শ’ কোটি টাকা দিয়েছে।অ্যাটর্নি জেনারেল মাহবুবে আলম বলেন, আদালতের নির্দেশে গ্রামীণফোন ওই টাকা দিয়েছে। আর অডিটের মাধ্যমে সাড়ে ১২ হাজার কোটি টাকার হিসাব এসেছে। গ্রামীণফোন তখন তো কোনো আপত্তি করেনি।এ পর্যায়ে আদালত বলেন, কত টাকা দিতে পারবেন- তা জানান। নইলে আদেশ দেয়া হবে। এর পরই আদালত এ মামলার আদেশের জন্য দিন ধার্য রাখেন।

এ্যাডভান্স পোল্ট্রি ফিডের নামে বিভ্রান্তিমূলক সংবাদের প্রতিবাদ

গত ২৯/১০/১৯ তারিখে কুষ্টিয়ার কয়েকটি স্থানীয় দৈনিক পত্রিকায় এ্যাডভান্স পোল্ট্রি ফিডের নামে বিভ্রান্তিমূলক সংবাদের তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানিয়েছেন এ্যাডভান্স পোল্ট্রি ফিডস লিঃ এর পরিচালক মোঃ কামাল হোসেন। তিনি প্রতিবাদ লিপিতে বলেন, শতভাগ ওজন নিশ্চিত থাকা সত্বেও ৫০ কেজির বস্তা ডিজিটাল স্কেলে পরিমাপ করানোর পর স্কেল তারতম্য ১০ গ্রাম দেখায়। যা প্রতিটি ডিজিটাল স্কেলে বিদ্যমান। এরপরেও জাতীয় ভোক্তা অধিকার সংরক্ষণ অধিদপ্তরের কুষ্টিয়ার সহকারি পরিচালক নিজ ক্ষমতাবলে ৫০ হাজার টাকা জরিমানা করেন। এখন পর্যন্ত এ্যাডভান্স পোল্ট্রি ফিডের বিরুদ্ধে কোন গ্রাহক কিংবা ডিলারের কোন অভিযোগ নেই। অথচ ব্যবসায়ীক প্রতিপক্ষের মিথ্যা অভিযাগে এই ঘটনার অবতারনা হয়।

সড়ক পরিবহন আইন নমনীয় করার দাবি শাজহান খানের

ঢাকা অফিস ॥ নতুন সড়ক পরিবহন আইন নমনীয় করার দাবি তুলেছেন বাংলাদেশ সড়ক পরিবহন শ্রমিক ফেডারেশনের কার্যকরী সভাপতি শাজাহান খান। তিনি বলেছেন, আইন কঠোর করে শাস্তি বাড়িয়ে সড়কে শৃঙ্খলা ফিরিয়ে আনা সম্ভবপর হবে না। সড়কে শৃঙ্খলা ফেরানোর চেষ্টায় সরকার গঠিত একটি কমিটির প্রধান শাজাহান খান বিগত সরকারে নৌমন্ত্রী থাকাকালেও এই আইন কঠোর করার বিষয়ে আপত্তি তুলে সমালোচনায় পড়েছিলেন। ঢাকার সড়কে বাসের চাপায় দুই কলেজ শিক্ষার্থী প্রাণ হারানোর পর গত বছর শিক্ষার্থীদের নজিরবিহীন আন্দোলনের পর শাস্তির বিধান কঠোর করে নতুন সড়ক পরিবহন আইন প্রণয়ন হয়। গত বছর আইনটি হওয়ার পর সরকারের প্রজ্ঞাপন না হওয়ায় তার কার্যকারিতা ঝুলে ছিল; এর মধ্যে পরিবহন শ্রমিকদের দাবির মুখে আইনটি সংশোধনের ইঙ্গিতও আসছিল। তবে শেষে কোনো ধরনের পরিবর্তন ছাড়াই নতুন সড়ক পরিবহন আইনটি আগামী ১ নভেম্বর থেকে কার্যকর হচ্ছে। এতে সড়ক দুর্ঘটনায় মৃত্যুর ঘটনার মামলায় শাস্তি বাড়িয়ে ৫ লাখ টাকা অর্থদন্ড করা হয়েছে, এসব মামলা হবে জামিন অযোগ্য। নতুন আইনে শুরু থেকে আপত্তি জানিয়ে আসা সড়ক পরিবহন শ্রমিক ফেডারেশন আইন কার্যকরের আগের দিন বৃহস্পতিবার ঢাকা রিপোর্টার্স ইউনিটিতে সংবাদ সম্মেলন করে সংশোধনের কিছু প্রস্তাব দেয়। শাজাহান খান বলেন, “এখনও বিধি প্রণয়ন করা হয়নি। বিধি প্রণয়ন ব্যতীত আইন প্রয়োগে জটিলতার অবসান হবে কীভাবে?” আইন কঠোর করলে সড়ক দুর্ঘটনায় মৃত্যুর সংখ্যা কমবে বলে যারা মনে করছেন, তাদের সঙ্গে ভিন্নমত জানান তিনি। “চালক বা শ্রমিককে সাজা বা ফাঁসি দিলে দুর্ঘটনা বন্ধ হবে, এমন অলীক কল্পনা যারা করেন, তারা বোকার স্বর্গে বাস করছেন। সব দেশে আইন আছে, কেউ কাউকে হত্যা করলে তার সর্বোচ্চ শাস্তি মৃত্যুদন্ড। এ কঠিন আইন থাকার পরও কি হত্যাকান্ড বন্ধ হয়ে গেছে? “তাদের মনে রাখতে হবে, দুর্ঘটনায় মৃত্যু হত্যাকান্ড নয়। দুর্ঘটনা দুর্ঘটনাই। দুর্ঘটনায় শুধু যাত্রী বা পথচারী নিহত হয় না, চালক বা শ্রমিকও নিহত হন। চালক বা শ্রমিকের কারণে যদি দুর্ঘটনা ঘটে তার দায়ভার চালক ও শ্রমিকের। আইন অনুযায়ী তাদের সাজা হবে। অন্য কারণে দুর্ঘটনার দায়ভার তারা নেবে কেন?” “রেলপথের ওপর মোবাইল ফোন কানে দিয়ে কথা বলতে গিয়ে আনমনা কেউ ট্রেনের চাকায় কাটা পড়লে তার জন্য কি ট্রেনের ড্রাইভারকে দায়ী করা হয়?” বলেন তিনি। দুর্ঘটনা নিয়ে উচ্চ আদালতের কয়েকটি আদেশের প্রসঙ্গ টেনে শাজাহান খান বলেন, “সম্প্রতি দুর্ঘটনার কারণে দেশের সর্বোচ্চ আদালত পরিবহন মালিক ও শ্রমিকদের বিরুদ্ধে কোটি কোটি টাকা ক্ষতিপূরণের রায় দিয়েছেন। ঢালাওভাবে এ ধরনের রায় কোনো দেশে নেই। এতে মালিক-শ্রমিক গভীর উদ্বেগ ও উৎকণ্ঠার মধ্যে আছেন।” তিনি বলেন, “এসব রায় সড়কে কতটা শৃঙ্খলা ফিরিয়ে আনবে, তা নিয়েও প্রশ্ন দেখা দিয়েছে। শুধু শাস্তির ভয় দেখিয়ে সড়কে শৃঙ্খলা ফিরিয়ে আনা সম্ভব না। বরং সড়ক আইন যথাযথ বাস্তবায়ন করতে হলে আমাদের প্রস্তাবিত ১১১টি সুপারিশের বাস্তবায়ন জরুরি।”

বর্ণাঢ্য আয়োজনে কুষ্টিয়ায় জাসদের ৪৭তম প্রতিষ্ঠা বার্ষিকী পালন

‘শ্রমজীবি-কর্মজীবি-পেশাজীবি জনগন এক হও’ শ্লোগানকে ধারণ করে ঐতিহ্য, গৌরব ও সংগ্রাম প্রতিষ্ঠার ৪৭ বছর উদ্যাপন করেছে কুষ্টিয়ার মিরপুর উপজেলা জাসদসহ ছয়টি উপজেলার নেতাকর্মীরা। বৃহষ্পতিবার সকাল ১০টা থেকে দুপুর পর্যন্ত লাল পতাকা ধারণ করে বর্ণাঢ্য র‌্যালীসহ নানা আয়োজনের মধ্যদিয়ে দলীয় এই কর্মসূচী পালিত হয়। এমসয় জাসদের কেন্দ্র ঘোষিত সাম্প্রতিক রাজনৈতিক এজেন্ডা হিসেবে শান্তি ও টেকসই উন্নয়নের ধারকে অব্যহত রাখাসহ আইনের শাসন নিশ্চিত করে সুশাসন প্রতিষ্ঠার আন্দোলনকে বেগবান করার আহ্বান করেন নেতৃবৃন্দ। এসময় সেখানে উপস্থিতি ছিলেন কুষ্টিয়া জেলা জাসদের সভাপতি গোলাম মহসিন, সাধারণ সম্পাদক আব্দুল আলীম স্বপন, যুগ্ম-সাধারণ সম্পাদক জিল্লুর রহমান, সহ-সম্পাদক রফিক আহমেদ হাবলু, যুবজোট সভাপতি মাহবুব হাসান, সদর উপজেলার জাসদের সভাপতি আমিরুল ইসলাম মকলু, জাতীয় শ্রমিক জোটের সভাপতি আব্দুল কুদ্দুস। সংবাদ বিজ্ঞপ্তি

কুষ্টিয়ায় এনআরবিসি ব্যাংকিং বুথ শাখা উদ্বোধন

নিজ সংবাদ ॥ কুষ্টিয়া জেলা রেজিষ্ট্রার অফিসে এনআরবিসি ব্যাংকিং বুথ শাখা’র কার্যক্রম শুরু হয়েছে। গতকাল বৃহস্পতিবার বিকাল ৩টায় এ উপলক্ষে আয়োজিত বুথ উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি ছিলেন এনআরবিসি ব্যাংকের চেয়ারম্যান রফিকুল ইসলাম মিয়া আরজু। বিশেষ অতিথি ছিলেন মোঃ আবুল কালাম আজাদ। আরও উপস্থিত ছিলেন ইভিপি এন্ড হেড অব এডিসি বিভাগ মোঃ সাফায়েত কবির, কুষ্টিয়ার জেলা রেজিষ্ট্রার প্রভাকর সাহ, সাব রেজিষ্ট্রার আনোয়ার হোসেন, সাব রেজিষ্ট্রার জুবায়ের হোসেন, অফিস সহকারী ইব্রাহিম হোসেন, কুষ্টিয়া সদর দলিল লেখক সমিতির সভাপতি ওয়াহেদুজ্জামান লাইজু, এনআরবিসি ব্যাংকের ম্যানাজার কুষ্টিয়া মোঃ কামাল উদ্দিন, ম্যানেজার হাটগোপালপুর, যশোর শাখার ম্যানেজার মোঃ ইকবাল হোসেন, জুনিয়ার টেলার মনিরুজ্জামান প্রমুখ।

ঢাকার পর চট্টগ্রাম থেকে মদিনায় বিমানের ফ্লাইট চালু

ঢাকা অফিস ॥ ঢাকার পর চট্টগ্রাম থেকে সৌদি আরবের মদিনায় বিমান বাংলাদেশের সরাসরি ফ্লাইট চালু হল। গতকাল বৃহস্পতিবার দুপুরে চট্টগ্রামের শাহ আমানত আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে বেসামরিক বিমান পরিবহন ও পর্যটন প্রতিমন্ত্রী মো. মাহবুব আলী ফ্লাইটের উদ্বোধন করেন।এরপর দুপুর সোয়া একটায় ২৬৫ জন যাত্রী নিয়ে বিজি-১৩৭ ফ্লাইটটি চট্টগ্রাম ছেড়ে যায়। ফ্লাইটটি মদিনার স্থানীয় সময় বিকাল সাড়ে পাঁচটায় পৌঁছাবে।মদিনা থেকে ফিরতি ফ্লাইট বিজি-১৩৮ স্থানীয় সময় সন্ধ্যা সোয়া সাতটায় ছেড়ে পরদিন চারটা ২৫ মিনিটে চট্টগ্রাম পৌঁছাবে।প্রাথমিকভাবে চট্টগ্রাম-মদিনা রুটে বিমান প্রতি বৃহস্পতিবার সরাসরি ফ্লাইট পরিচালনা করবে। পরবর্তীতে যাত্রী বৃদ্ধির প্রেক্ষিতে ফ্লাইটও বাড়ানো হবে বলে বিমান কর্তৃপক্ষ জানিয়েছে। উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে বেসামরিক বিমান চলাচল কর্তৃপক্ষের চেয়ারম্যান এয়ার ভাইস মার্শাল মো. মফিদুর রহমান, বিমানের ব্যবস্থাপনা পরিচালক ও সিইও মো. মোকাব্বির হোসেন উপস্থিত ছিলেন।প্রধান অতিথির বক্তব্যে প্রতিমন্ত্রী মাহবুব আলী বলেন, “মক্কা-মদিনায় চট্টগ্রামের লোক বেশি। প্রচুর লোক প্রতি বছর হজ ও ওমরাহ করতে যান, চট্টগ্রামের সম্ভবত বেশি। যারা মধ্যপ্রাচ্যবাসী এবং নিয়মিত যাতায়াত করেন তাদের জন্য এ ফ্লাইট।”এর আগে গত সোমবার চালু হয় বিমানের ঢাকা-মদিনা ফ্লাইট।বিমান বাংলাদেশ এয়ারলাইন্স বিশ্বসেরা বিমান সংস্থা হয়ে উঠবে এ প্রত্যাশা করে প্রতিমন্ত্রী বলেন, “চট্টগ্রামের মানুষের ভ্রমণ যাতে সহজ সুন্দর হয় সেজন্য চট্টগ্রাম থেকে মদিনার পথে এ সরাসরি ফ্লাইট চালু করা হল।“মধ্যপ্রাচ্য, ভারতীয়সহ বিভিন্ন বিমান সংস্থা আসতে উদগ্রিব। আমাদের হ্যান্ডলিং ক্ষমতা বাড়াতে হবে। এ লক্ষ্যে কাজ করছি। চট্টগ্রাম থেকে পূর্বমুখী ফ্লাইট বাড়াতে উদ্যোগ নেওয়া হবে। বিমানের কাছে যারা টাকা পায় তা পরিশোধ করা হবে। পরিশোধ করেই আমরা সামনের দিকে অগ্রসর হব।”বেসামরিক বিমান চলাচল কর্তৃপক্ষের চেয়ারম্যান এয়ার ভাইস মার্শাল মো. মফিদুর রহমান বলেন, “চট্টগ্রাম  অঞ্চলের বহুলোক মক্কা-মদিনায় বসবাস করেন। এটা অনেক দিনের দাবি ছিল। এটা শুধু চট্টগ্রামবাসীর আশা নয়, আর্থ সামাজিক বিষয়ও জড়িত। প্রতিটি বিমানবন্দর ব্যস্ত হয়ে উঠছে। চট্টগ্রাম বিমানবন্দর সহসা সম্প্রসারণ ও রানওয়ের উন্নয়ন করব। আরও দুটি বোর্ডিং ব্রিজ লাগানোর উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে।”বিমানের ব্যবস্থাপনা পরিচালক মোকাব্বির হোসেন বলেন, বিমানের এখন নিজস্ব ১০টি আধুনিক নতুন উড়োজাহাজ আছে। আরও ছয়টি এয়ারক্রাফট আছে ভাড়ায়। “ব্যবসায়িক কারণে নতুন রুট ও গন্তব্য বৃদ্ধি করছি। তারই ধারাবাহিকতায় ঢাকা-মদিনা ফ্লাইট চালু হয়েছে।”

তিনি বলেন, “চট্টগ্রাম থেকে মধ্যপ্রাচ্যের বিভিন্ন গন্তব্যে সরাসরি ফ্লাইট চলাচল শুরু হয়েছে। আরও দুটি নতুন ড্রিমলাইনার ডিসেম্বরের শেষ সপ্তাহে যুক্ত হবে। তখন আরও ফ্লাইট বাড়ানো হবে।” বিমানের পক্ষ থেকে জানানো হয়েছে, মদিনা ফ্লাইট উদ্বোধন উপলক্ষ্যে উভয় রুটের যাত্রীদের জন্য টিকেটে ১৫ শতাংশ ছাড় দেওয়া হয়েছে। বিমানের সেলস সেন্টার, ট্রাভেল এজেন্ট, বিমানের ওয়েবসাইট এবং বিমানের কল সেন্টার থেকে টিকেট কেনা যাবে।

তুলনামূলক কমমূল্যের মাধ্যমে বিশ্ববাজারে বাংলাদেশী পণ্যের স্থান করে নিতে হবে – বাণিজ্যমন্ত্রী

ঢাকা অফিস ॥ বাণিজ্যমন্ত্রী টিপু মুনশি বলেছেন, পণ্যের উন্নত মান বজায় রেখে তুলনামূলক কমমূল্যের মাধ্যমে বিশ্ববাজারে বাংলাদেশী পণ্যের স্থান করে নিতে হবে। তিনি বৃহস্পতিবার রাজধানীর বসুন্ধরা ইন্টারন্যাশনাল কনভেনশন সিটিতে বাংলাদেশ পাদুকা প্রস্তুতকারক সমিতি আয়োজিত তিন দিনব্যাপী ‘সপ্তম লেদারটেক বাংলাদেশ-২০১৯’র উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তৃতায় এ কথা বলেন। বাণিজ্য সচিব ড. মো. জাফর উদ্দিন অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি ছিলেন। বাংলাদেশে বিনিয়োগের উপযুক্ত পরিবেশ বিরাজ করছে উল্লেখ করে মন্ত্রী বলেন, বর্তমান সরকার বিনিয়োগকারীদের সব ধরনের সহযোগিতা প্রদান করছে। তিনি বলেন, বাংলাদেশে চামড়া শিল্পে বিনিয়োগকারীরাও লাভবান হবেন। কারণ দেশি-বিদেশি বিনিয়োগকারীদের জন্য বাংলাদেশে উপযুক্ত স্থান। টিপু মুনশি বলেন, ‘আমরা চামড়া শিল্পকে রপ্তানি খাতে দি¦তীয় স্থানে দেখতে চাই। ২০২১ সালে চামড়া খাতে বাংলাদেশের রপ্তানির লক্ষ্যমাত্রা ৫ বিলিয়ন মার্কিন ডলার নির্ধারণ করা হলেও, আমরা আরো বেশি দেখতে চাই।’ বাণিজ্যমন্ত্রী বলেন, বাংলাদেশে তৈরি যে কোন পণ্যের মানের ব্যাপারে কোন কম্প্রমাইজ করা হবে না। তবে বেসরকারি যে কোন উদ্যোগের সাথে সরকারের সহযোগিতা থাকবে। তিনি বলেন, চামড়া শিল্পের কাঁচামাল ও তুলনামূলক কম মূল্যের শ্রম শক্তির এ শিল্পকে বিশ্ববাসীর কাছে জনপ্রিয় করে তোলা সম্ভব। মন্ত্রী বলেন, বাংলাদেশের চামড়া শিল্পের বিপুল সম্ভাবনা রয়েছে। এ সম্ভাবনা কাজে লাগাতে হবে। তিনি বলেন,‘আমরা বিশ্বাস করি বিশ্বের বড় বড় কোম্পানি বাংলাদেশে বিনিয়োগ করতে এগিয়ে আসবে। তখন এ খাতের চিত্র অন্যরকম হবে। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ঘোষিত দেশের বিভিন্ন স্থানে ১০০টি স্পেশাল ইকোনমিক জোন গড়ে উঠছে। এগুলোতে বিনিয়োগ করতে অনেক দেশি-বিদেশি প্রতিষ্ঠান ইতোমধ্যেই এগিয়ে এসেছে। বাংলাদেশের চামড়া জাত পণ্যের চাহিদা বিশ্ববাজারে দিন দিন বাড়ছে। সঠিকভাবে গবেষণা করে, প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ গ্রহণ করলে আমরা চামড়া খাতে সফলতা অবশ্যই পাবো।’ উল্লেখ্য, এবার মেলায় বিশে^র ২০টি দেশের তিনশতাধিক প্রতিষ্ঠান ফিনিস লেদার, ট্যানিং লেদারের জন্য মেশিনারিজ, ম্যানুফ্যাকচারিং ফুটওয়্যার, চামড়াজাত পণ্যসহ এরসাথে সংশ্লিষ্ট প্রযুক্তি প্রদর্শন করা হচ্ছে।

দেশগুলোর মধ্যে রয়েছে বাংলাদেশ, চীন, কোরিয়া তুরষ্ক, মিশর, ভিয়েতনাম, যুক্তরাজ্য, শ্রীলংকা, ইতালি, জার্মানি, সিঙ্গাপুর, জাপান, তাইওয়ান হংকং ও পাকিস্তান। এ অনুষ্ঠানে বাংলাদেশ লেদার ফুটওয়্যার এন্ড লেদারগুডস ইন্টারন্যাশনাল সোর্সিং শো-২০১৯’র আহবায়ক সৈয়দ নাসিম মঞ্জুর, লেদারগুডস এন্ড ফুটওয়্যার মেন্যুফ্যাকচারার্স এন্ড ট্রেড এন্ড এক্সিবিশন্স প্রাইভেট লিমিটেডের পরিচালক নন্দ গোপাল বাংলাদেশ পাদুকা প্রস্তুত কারক সমিতির প্রেসিডেন্ট শাহীন খান প্রমুখ বক্তুদা করেন। অনুষ্ঠান শেষে বাণিজ্যমন্ত্রী বিভিন্ন স্টল পরিদর্শন করেন।

নারীদের দারিদ্রের দুষ্ট বৃত্ত থেকে বের করে আনতে হবে – স্পিকার

ঢাকা অফিস ॥ জাতীয় সংসদের স্পিকার ড. শিরীন শারমিন চৌধুরী বলেছেন, অসমতা ও বৈষম্য দূর করে নারীদেরকে উন্নয়নের মূল গ্রোতে সম্পৃক্ত করতে হবে। দেশের অর্ধেক জনগোষ্ঠী নারীদের পিছিয়ে রেখে প্রকৃত টেকসই উন্নয়ন লক্ষ্য (এসডিজি) অর্জন সম্ভব নয়। দারিদ্রের দুষ্ট বৃত্ত থেকে বের করে আনতে হবে নারীদের। তবেই অন্তর্ভুক্তিমূলক উন্নয়ন সাধিত হওয়ার পাশাপাশি অন্তর্ভুক্তিমূলক প্রবৃদ্ধি অর্জন এবং টেকসই উন্নয়ন লক্ষ্য ২০৩০ এর প্রতিশ্রুত ¯ে¬াগান ‘কেউ পিছিয়ে থাকবে না’ পূরণ হবে। বৃহস্পতিবার রাজধানীর মিরপুর সেনানিবাসস্থ বাংলাদেশ ইউনিভার্সিটি অব প্রফেশনালস-এ অনুষ্ঠিত ‘হিউম্যান এমপাওয়ারম্যান্ট অ্যান্ড এটেইনিং সাসটেইনেবল ডেভেলপমেন্ট গোলস ইন বাংলাদেশ : দ্য কেইসেস অব উইমেন অ্যান্ড মার্জিনাল কমিউনিটি’ শীর্ষক সেমিনারে তিনি এসব কথা বলেন। স্পিকার বলেন, বিশ্বায়নের এ যুগে নব প্রজন্মের শিক্ষার্থীরাই পরিবর্তনের রূপকার। জনগণের জীবনমানের পরিবর্তন আনতে নতুন প্রজন্মকে তাদের সৃজনশীল মেধা ও জ্ঞানকে কজে লাগাতে হবে। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে বাংলাদেশ আজ উন্নয়নের বিস্ময়। সপ্তম পঞ্চবার্ষিকী পরিকল্পনা ও এসডিজির লক্ষ্য বাস্তবায়নে সরকার নিরবচ্ছিন্নভাবে কাজ করে যাচ্ছে। তিনি বলেন, সামাজিক ও অর্থনৈতিক সকল সূচকে বাংলাদেশের অবস্থান এখন সুদৃঢ়। বিগত দশ বছরে দারিদ্র্য ৪০ শতাংশ থেকে ২১ শতাংশে নেমে এসেছে। এ সকল অর্জন সম্ভব হয়েছে নারীর অর্থনৈতিক ক্ষমতায়নের কারণে। সামাজিক নিরাপত্তা বেস্টনীর আওতায় নিশ্চিত করা হয়েছে বয়স্ক ভাতা, বিধবা ভাতা, মুক্তিযোদ্ধা ভাতাসহ নানা সুবিধা। বর্তমানে জিডিপি ৮ শতাংশ যা উন্নত ও সমৃদ্ধ বাংলাদেশ গড়ে ওঠার পূর্বাভাস। স্পিকার বলেন, নারীর ক্ষমতায়ন ও এসডিজি লক্ষ্য পূরণে বর্তমান সরকার জেন্ডার রেস্পন্সিভ বাজেট প্রণয়ন করছে। এছাড়া সংসদ সদস্যগণ নিজ নিজ নির্বাচনী এলাকায় নারী ক্ষমতায়ন ও দারিদ্র্য বিমোচনে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখছেন। নারী ও অতিদরিদ্র সম্প্রদায়ের জীবনমান উন্নয়নে খাতভিত্তিক পৃথক পৃথক বরাদ্দ রয়েছে বর্তমান বাজেটে। নারী উন্নয়নের ক্ষেত্রে মাতৃস্বাস্থ্য ও পুষ্টির বিষয়টি গুরুত্ব দিতে হবে। কেননা, শিশুপুষ্টির কেন্দ্রই হলো গর্ভবতী মা। তিনি বলেন, বাংলাদেশের কৃষি উন্নয়নে ও খাদ্য নিরাপত্তায় নারীর অবদান ৭০ ভাগ। গৃহস্থলী কর্ম থেকে শুরু করে কৃষিপণ্য প্রক্রিয়াকরণ ও বাজারজাতকরণে রয়েছে নারীর অসামান্য ভূমিকা। নারীর এ অবদানকে যথাযথ সম্মান দিলেই অন্তর্ভুক্তিমূলক উন্নয়ন সুরক্ষিত হবে। অনুষ্ঠানে বাংলাদেশ ইউনিভার্সিটি অব প্রফেশনালসের উপাচার্য মেজর জেনারেল মো. এমদাদ উল বারী ও উপ উপাচার্য এম আবুল কাসেম মজুমদার বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন।