দৌলতপুরে বন্যার্তদের মাঝে ত্রান বিতরন

দৌলতপুর প্রতিনিধি ॥ কুষ্টিয়ার দৌলতপুরে বন্যার্ত  ৪০০ পরিবারের মাঝে ত্রান সামগ্রী বিতরণ করা হয়েছে। ইঞ্জিনিয়ার্স ফাউন্ডেশন দৌলতপুরের উদ্যোগে উপজেলার চিলমারী ও রামকৃষ্ণপুর ইউনিয়নের বানভাসী মানুষের মাঝে এসব ত্রানসামগ্রী বিতরন করা হয়। ইঞ্জিনিয়ার্স ফাউন্ডেশন দৌলতপুর-এইএফডি প্রকৌশলী মো: হারুন অর রশিদ, সভাপতি ও প্রকৌশলী মোঃ ইলিয়াস হোসেন উপস্থিত থেকে বন্যার কবলে পড়া এসব মানুষদের মাঝে চিড়া, চিনি মুড়ি, চানাচুর এবং ঔষধ সামগ্রীসহ শুকনা খাবার বিতরন করা। ত্রান বিতরন অনুষ্ঠানে ইঞ্জিনিয়ার্স ফাউন্ডেশন দৌলতপুর সংগঠনের নেতৃবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন। উল্লেখ্য, এবারের আকষ্কিক বন্যায় দৌলতপুরের চিলমারী ও রামকৃষ্ণপুরের অধিকাংশ এলাকা প্লাবিত হয়। ফসলের ব্যাপক ক্ষয়ক্ষতিসহ চরম মানবেতর জীবন যাপন করেছে ইউনিয়ন দুটির বাসিন্দারা।

দৌলতপুর সীমান্তে বিজিবি’র পৃথক অভিযানে মাদক উদ্ধার

দৌলতপুর প্রতিনিধি ॥ কুষ্টিয়ার দৌলতপুর সীমান্তে বিজি’র পৃথক অভিযানে ফেনসিডিল, গাঁজা, ভারতীয় পাতার বিড়ি ও গরু মোটাতাজাকরণ ট্যাবলেট উদ্ধার হয়েছে। বৃহস্পতিবার রাত সোয়া ১২টার দিকে জামালপুর বিওপি’র টহল দল জামালপুর উত্তর মাঠে অভিযান চালিয়ে ৫৭ বোতল ফেনসিডিল উদ্ধার করেছে। গতকাল শুক্রবার ভোররাত পৌনে ৬টার দিকে মহিষকুন্ডি বিওপি’র টহল দল মহিষকুন্ডি রাজধানীর মোড়ে একটি যাত্রীবাহী বাসে তল্লাশি চালিয়ে ৪ কেজি ৮’শ গ্রাম গাঁজা উদ্ধার করেছে। একইদিন বিকেল সাড়ে ৫টার দিকে চিলমারী বিওপি’র টহল দল আকন্দপাড়া মাঠে অভিযান চালিয়ে ৪০ প্যাকেট ভারতীয় পাতার বিড়ি ও ৩২৮০ পিস গরু মোটাতাজাকরণ ট্যাবলেট উদ্ধার উদ্ধার করেছে। এছাড়াও বৃহস্পতিবার রাত সাড়ে ৯টার দিকে মহিষকুন্ডি বিওপি’র টহল দল ভাগজোত বাজারে অভিযান চালিয়ে ৮ কেজি গাঁজা ও ৩০ প্যাকেট ভারতীয় পাতার বিড়ি উদ্ধার করেছে। তবে উদ্ধার হওয়া মাদকের সাথে জড়িত কেউ আটক হয়নি বলে বিজিবি সূত্র জানিয়েছে।

ঝিনাইদহে কন্যা শিশু দিবস পালিত

ঝিনাইদহ প্রতিনিধি ॥ ঝিনাইদহে আন্তর্জাতিক কন্যা শিশু দিবসে আলোচনা সভা ও দেশের গান প্রতিযোগিতা অনুষ্ঠিত হয়েছে। ঝিনাইদহ শিশু একাডেমির আয়োজনে গতকাল শুক্রবার সকালে শিশু একাডেমি মিলনায়তনে এ কর্মসূচি পালিত হয়। জেলা শিশু বিষয় কর্মকর্তা আয়ুব হোসেনের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি ছিলেন অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক সেলিম রেজা। বিশেষ অতিথি ছিলেন জেলা মহিলা বিষয়ক কর্মকর্তা নিলুফার রহমান, সরকারি নুরুন্নাহার মহিলা কলেজের সাবেক উপাধ্যক্ষ এন এম শাহজালাল, সহকারি জেলা শিক্ষা কর্মকর্তা তসলিমা খাতুন, অধ্যক্ষ আবু বক্কার সিদ্দিক প্রমুখ। এছাড়া শিশু বক্তা বক্তব্য রাখেন আজমির রহমান তরু, জান্নাতুল ফেরদৌস মিম। এসময় বক্তারা বলেন, কন্যা শিশুদের প্রতি আমরা যেন অবহেলা না করি। তারা আমাদের আগামী দিনের ভবিষ্যৎ।

‘শহীদ আবরার দিবস’ পালনের আহ্বান মওদুদের

ঢাকা অফিস ॥ ভারতের সঙ্গে দেশের ‘স্বার্থবিরোধী’ চুক্তির সমালোচক বুয়েটের ছাত্র আবরার ফাহাদ হত্যাকান্ডের দিনটিকে ‘শহীদ আবরার দিবস’ হিসেবে পালনের আহ্বান জানিয়েছেন মওদুদ আহমদ। শুক্রবার সকালে রাজধানীর জাতীয় প্রেস ক্লাবে এক সমাবেশে বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য এ প্রস্তাব করেন। মওদুদ বলেন, ভারতকে চট্টগ্রাম ও মংলা বন্দরের ব্যবহারে অনুমতি ও উপকূলে সার্বক্ষণিক নজরদারির বিষয়ে চুক্তি ‘আমাদের সার্বভৌমত্ব বিক্রির’ শামিল। ফেনীর নদীর পানি দেওয়া নিয়ে যে চুক্তি হল, তারপরেই হল ‘আবরারের শহিদানের’ ঘটনা। তিনি বলেন, চুক্তি নিয়ে সমালোচনামূলক বক্তব্য রাখায় আবরারের প্রতিবাদী কণ্ঠকে স্তব্ধ করে দিতেই তাকে হত্যা করা হয়। “তাই এ দিনটিকে ‘শহীদ আবরার দিবস হিসেবে’ পালন করার জন্য আমি আহ্বান জানাচ্ছি।” তড়িৎ কৌশল বিভাগের দ্বিতীয় বর্ষের ছাত্র আবরার ফাহাদকে গত রোববার (৬ অক্টোবর) রাতে ওই হলের ২০১১ নম্বর কক্ষে ডেকে নিয়ে পিটিয়ে হত্যা করে ছাত্রলীগের নেতাকর্মীরা। এ ঘটনায় করা মামলায় মোট ১৭ জনকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। সাবেক আইনমন্ত্রী মওদুদ বলেন, “ফেনী নদী থেকে প্রতি সেকেন্ডে ৫০ লিটার পানি যাবে, প্রতি চব্বিশ ঘণ্টায় যাবে ৪ লক্ষ লিটার। এই পানি আমাদেরই প্রয়োজন, শুষ্ক মৌসুমে পানি থাকে না। কিন্তু সেই পানি দিয়ে এসে বললেন, বাংলাদেশের কোনো স্বার্থ তিনি (প্রধানমন্ত্রী) বিক্রি করে আসনে নাই। “অথচ, এই সরকার ১০ বছর হলো ক্ষমতায় আছে, কিন্তু তারা তিস্তা নদীর ন্যায্য হিস্যা আদায় করতে পারে নাই।” ছাত্রলীগ সারা দেশে ‘টর্চার সেল’ স্থাপন করে বিরোধী মতের মানুষের ওপর নির্যাতন চালাচ্ছে অভিযোগ করে মওদুদ বলেন, “বাংলাদেশ মানুষ এই সরকারকে আর ক্ষমতায় দেখতে চায় না। “দেশে শান্তি ফিরে আসুক, নৈরাজ্য দূর হোক, আইনের শাসন ফিরে আসুক, সংবাদপত্রের স্বাধীনতা ফিরে আসুক এবং বিচার বিভাগের স্বাধীনতা ফিরে আসুক- এটাই বাংলাদেশের মানুষের প্রত্যাশা।” কারাবন্দী দলীয় প্রধানের ক্ষেত্রে সরকার আইন প্রয়োগে বৈষম্য সৃষ্টি করছে অভিযোগ করে এই বিএনপি নেতা বলেন, “চিকিৎসার জন্য দুই দিনের মধ্যে সম্রাট হাসপাতালে আর আমার নেত্রী খালেদা জিয়া, তিনবার জনগণের নির্বাচিত প্রধানমন্ত্রী, এখন পর্যন্ত উপযুক্ত চিকিৎসা পাচ্ছেন না, তাকে অবহেলিতভাবে পিজি হাসপাতালের একটা ছোট্ট কেবিনে রাখা হয়েছে।”জাতীয় প্রেস ক্লাবের সামনে সম্মিলিত পেশাজীবী পরিষদের উদ্যোগে আবরার ফাহাদ হত্যার প্রতিবাদে এই সমাবেশ হয়। সংগঠনের পেশাজীবী নেতা সাংবাদিক রুহুল আমিন গাজী ও সদস্য সচিব অধ্যাপক এজেডএম জাহিদ হোসেনের পরিচালনায় সমাবেশে ডা. জাফরুল্লাহ চৌধুরী, অধ্যাপক আব্দুল কুদ্দুস, অধ্যাপক এবিএম ওবায়দুল ইসলাম, অধ্যাপক শামসুল আলম, অধ্যাপক রফিকুল ইসলাম বাচ্চু, অধ্যাপক লুৎফর রহমান, সাংবাদিক এম আবদুল্লাহ, কাদের গনি চৌধুরী, শহিদুল ইসলাম, কৃষিবিদ শামীমুর রহমান শামীম, অ্যাডভোকেট আবেদ রাজা, জাতীয়তাবাদী সম্মিলিত সাংস্কৃতি জোটের রফিকুল ইসলাম বক্তব্য দেন।

সৌদি উপকূলে ইরানি ট্যাংকারে ক্ষেপণাস্ত্র হামলা!

ঢাকা অফিস ॥ সৌদি আরবের জেদ্দা বন্দরের কাছে ইরানের একটি তেল ট্যাংকারে সন্দেহজনক ক্ষেপণাস্ত্র হামলা হয়েছে। শুক্রবার ওই হামলায় ট্যাংকার থেকে লোহিত সাগরে তেল চুইয়ে পড়েছে। জাহাজটির স্বত্বাধিকারীর বরাতে বার্তা সংস্থা এএফপি এমন খবর দিয়েছে। ইরানের জাতীয় তেল ট্যাংকার কোম্পানি (এনআইটিসি) এক বিবৃতিতে জানিয়েছে, সাবিতি নামের জাহাজটির খোলে আলাদা দুটি বিস্ফোরণ ঘটেছে। সৌদি উপকূল থেকে শখানেক কিলোমিটার দূরে ছিল ট্যাংকারটি। কোম্পানিটি জানায়, সম্ভাব্য ক্ষেপণাস্ত্র হামলায় ওই বিস্ফোরণ ঘটতে পারে। এনআইটিসি জানায়, ট্যাংকারের সব ক্রুরা নিরাপদে রয়েছেন। জাহাজটিও স্থিতিশীল। জাহাজটির ক্ষয়ক্ষতি মেরামতের চেষ্টা করা হচ্ছে। তবে মধ্যপ্রাচ্য দেখভালের দায়িত্বে থাকা মার্কিন পঞ্চম নৌবহরের মুখপাত্র লেফটেন্যান্ট পাগানো বলেন, এই দুর্ঘটনার খবর কর্তৃপক্ষ অবগত হয়েছেন। এর বাইরে তিনি কোনো মন্তব্য করতে চাননি। মধ্যপ্রাচ্যে ইরানের চিরবৈরী সৌদির কাছ থেকে এখন পর্যন্ত কোনো মন্তব্য পাওয়া যায়নি। তবে এখন পর্যন্ত যত খবর পাওয়া গেছে, তাতে শুক্রবারই লোহিত সাগরের জেদ্দা উপকূলে এই বিস্ফোরণ ঘটেছে। হরমুজ প্রণালীতে সাম্প্রতিক তেল ট্যাংকারের রহস্যজনক একের পর এক হামলার পর এবার ইরানি জাহাজে এই হামলার খবর এসেছে। ইরানি সংবাদ সংস্থায় উল্লেখ করা বিশেষজ্ঞদের মতামত বলছে, এ ঘটনায় তদন্ত চলছে। এটা সন্ত্রাসী তৎপরতা হতে পারে বলে তারা সন্দেহ করছেন।

আ’লীগ সরকারের পতন ঘণ্টা বেজে গেছে – রিজভী

ঢাকা অফিস ॥ ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগ সরকারের পতন ঘণ্টা বেজে গেছে বলে মন্তব্য করেছেন বিএনপির সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবীর রিজভী।

তিনি বলেছেন, যারা আজ দেশবিরোধী চুক্তি আর শহীদ আবরারের বিচারের দাবিতে পথে নেমেছেন তাদের প্রতি আহ্বান, দাবি আদায় না হওয়া পর্যন্ত আপনারা অবিচল থাকুন। বিজয় আপনাদের সুনিশ্চিত। শুক্রবার দুপুরে নয়াপল্টনে দলের কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে এক সংবাদ সম্মেলনে রিজভী এসব কথা বলেন। বিএনপির এ নেতা বলেন, দেশের প্রতিবাদী ছাত্রসমাজ আজ স্ফুলিঙ্গের মতো জেগে উঠেছে। দেশের মানুষকে গুম-খুন-অপহরণ করে আর দেশের স্বার্থ বিকিয়ে দিয়ে গত একদশক ধরে যেভাবে ক্ষমতা কুক্ষিগত করে রাখা হয়েছে, এটি জনগণ আর চলতে দেবে না। দেশের ছাত্র সমাজ এসব অনাচার আর মেনে নেবে না। সরকারের পতন ঘণ্টা বেজে গেছে।’ তিনি আরও বলেন, সাধারণ শিক্ষার্থীদের চলমান আন্দোলনের স্লোগানের ভাষা শুনুন। ক্ষমতাসীনদের জুলুম এবং আধিপত্যবাদের বিরুদ্ধে মানুষের রক্তে আগুনজ্বলা দ্রোহ দেখুন। জনগণের আওয়াজ শুনুন। সারা দেশের শিক্ষার্থীদের মধ্যে আওয়াজ উঠেছে, আধিপত্যবাদী-সম্প্রসারণবাদী অপশক্তির বিরুদ্ধে। আধিপত্যবাদী-সম্প্রসারণবাদী অপশক্তির এ দেশীয় দোসরদের বিরুদ্ধে। কোনো আন্দোলন যেমন ব্যর্থ হয় না তেমনি দেশবিরোধী চুক্তি ও শহীদ আবরারের বিচারের দাবিতে গড়ে ওঠা ছাত্র আন্দোলনও ব্যর্থ হবে না ইনশাআল্লাহ। রাষ্ট্রীয় ও সরকারি সুবিধা ব্যবহার করে সরকার ছাত্রলীগকে নিয়ন্ত্রণ করছে অভিযোগ করে রিজভী বলেন, গত বুধবারে প্রধানমন্ত্রী সংবাদ সম্মেলনে দায় এড়ানোর জন্য বললেন, ছাত্রলীগ আওয়ামী লীগের অঙ্গ সংগঠন নয়। তাদের দলীয় গঠনতন্ত্রে হয়তো তাই লেখা রয়েছে। তবে বাস্তবতা ভিন্ন। বিপদে পড়লেই জনগণকে ধোকা দিতে ছাত্রলীগ আওয়ামী লীগের অঙ্গ সংগঠন নয় এই কথা বললেও দেখা যায়, ছাত্রলীগের নেতা নির্বাচিত হয় প্রধানমন্ত্রীর রাষ্ট্রীয় ভবন-গণভবনে বসে। আবার গণভবনে বসেই ছাত্রলীগের কোনো কোনো নেতার নেতৃত্ব কেড়ে নেয়া হয়।তিনি বলেন, ছাত্রলীগের হাতে অস্ত্র, হাতুড়ি, চাপাতি, লগি, বৈঠা দিয়ে বিরোধী মতের ছাত্রদের বিরুদ্ধে লেলিয়ে দিচ্ছে। সরকারের ছত্রচ্ছায়ায়, পৃষ্ঠপোষকতায় ছাত্রলীগ এখন নৃশংস হানাদার বাহিনীকেও ছাড়িয়ে গেছে। ছাত্রলীগের জঙ্গিদের হাতে আবরার ফাহাদের নির্মম মৃত্যু প্রমাণ করেছে, একজন মাত্র ব্যক্তির ক্ষমতালিপ্সার কারণে ছাত্রলীগকে জঙ্গি সংগঠনে পরিণত করা হয়েছে। এখন ছাত্রলীগকে তৈরি করা হয়েছে বধ্যভূমির ঘাতক হিসেবে।

প্রধানমন্ত্রীর ভারত সফর প্রসঙ্গে বিএনপির সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব বলেন, বার বার ভারতে সফরে গিয়ে অসংখ্য দেশবিরোধী চুক্তি করে আসছেন বিনাভোটের প্রধানমন্ত্রী। জনগণ জানতেও পারছে না কী চুক্তি হচ্ছে, কেন হচ্ছে এইসব চুক্তি? এইসব চুক্তিতে কার স্বার্থ রক্ষা হচ্ছে? জনগণের দল হিসেবে বিএনপির স্পষ্ট দাবি, ভারতের সঙ্গে গত এক দশকে কী কী চুক্তি হয়েছে, কত চুক্তি হয়েছে, প্রতিটি চুক্তি সম্পর্কে জনগণকে বিস্তারিত জানাতে হবে।’

 

আবরার হত্যা মামলার আসামি মাজেদুল গ্রেপ্তার

ঢাকা অফিস ॥ বুয়েট ছাত্র আবরার ফাহাদ হত্যা মামলার এজাহারভুক্ত আসামি মাজেদুল ইসলামকে গ্রেপ্তার করেছে ঢাকা মহানগর গোয়েন্দা পুলিশ। ঢাকা মহানগর পুলিশের উপ-কমিশনার (মিডিয়া) মাসুদুর রহমান জানান, শুক্রবার ভোর ৪টার দিকে সিলেট থেকে মাজেদুলকে গ্রেপ্তার করা হয়। ম্যাটারিয়াল অ্যান্ড ম্যাটার্লজিক্যাল ইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগের ১৭তম ব্যাচের শিক্ষার্থী মাজেদুল ইসলাম শেরেবাংলা হল ছাত্রলীগের একজন কর্মী। আবরার হত্যা মামলার এজাহারে তার নাম রয়েছে ৮ নম্বরে। মাসুদুর রহমান বলেন, এ মামলায় এ নিয়ে মোট ১৭ জনকে গ্রেপ্তার করা হল, তাদের মধ্যে ১৩ জন মামলার এজাহারভুক্ত আসামি। চারজনের নাম মামলার এজাহারে না থাকলেও হত্যাকান্ডে সংশ্লিষ্টতার প্রাথমিক প্রমাণ পাওয়ায় তাদের গ্রেপ্তার করা হয়েছে। বুয়েটের শেরে বাংলা হলের আবাসিক ছাত্র ও তড়িৎ কৌশল বিভাগের দ্বিতীয় বর্ষের শিক্ষার্থী আবরারকে গত রোববার রাতে ছাত্রলীগের এক নেতার কক্ষে নিয়ে নির্যাতন চালিয়ে হত্যা করা হয়। গ্রেপ্তারদের মধ্যে বুয়েট শিক্ষার্থীদের মধ্যে বুয়েট ছাত্রলীগের উপ-সমাজসেবা সম্পাদক ইফতি মোশাররফ সকাল বৃহস্পতিবার আদালতে স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দিয়েছেন। তিনি বুয়েটের বায়ো মেডিকেল ইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগের তৃতীয় বর্ষের ছাত্র। আবরারকে কীভাবে ক্রিকেট স্টাম্প আর স্কিপিং রোপ দিয়ে কয়েক ঘণ্টা ধরে বেধড়ক পেটানো হয়েছিল, সেই ভয়ঙ্কর বিবরণ তিনি জবানবন্দিতে দিয়েছেন বলে সংবাদমাধ্যমের খবরে উঠে এসেছে। আবরারের বাবার করা মামলায় যে ১৯ জনের নাম ছিল,তাদের মধ্যে ছয়জন এখনও পলাতক রয়েছেন। তাদের গ্রেপ্তারে অভিযান চালাচ্ছে পুলিশ। এদিকে আবরারের খুনিদের সর্বোচ্চ শাস্তিসহ দশ দফা দাবিতে পাঁচ দিন ধরে আন্দোলন চালিয়ে আসছে বুয়েটের শিক্ষার্থীরা।

দৌলতপুরে বন্যার্তদের মাঝে ত্রান বিতরণ

দৌলতপুর প্রতিনিধি ॥ কুষ্টিয়ার দৌলতপুরে বন্যার্তদের মাঝে ত্রান বিতরণ করা হয়েছে। গতকাল শুক্রবার দৌলতপুর ইমারত নির্মান শ্রমিক ইউনিয়নের পক্ষ থেকে চিলমারী ও রামকৃষ্ণপুর ইউনিয়নের বন্যার্তদের মাঝে ত্রান হিসেবে শুকনো খাবার বিতরণ হয়। ত্রান বিতরণকালে উপস্থিত ছিলেন, সাবেক ইউপি চেয়ারম্যান নুরুর রহমান, প্রকৌশলী আব্দুর রাজ্জাক, জুয়েল হোসেন, প্রভাষক শাহ আলম, ইউপি সদস্য উজ¦ল হোসেন, দৌলতপুর ইমারত নির্মান শ্রমিক ইউনিয়নের সভাপতি আজাদ আল শামীম, সাধারণ সম্পাদক ইসমাইল হোসেন, শ্রম ও কল্যাণ সম্পাদক নাজমুস সাদাত খান সজিব প্রমুখ।

গাংনীতে সড়ক দূর্ঘটনায় খুলনার ট্রাক চালক-হেলপার আহত

গাংনী প্রতিনিধি ॥ মেহেরপুরের গাংনীতে মোটরসাইকেলের নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে ২ জন গুরুতর আহত হয়েছেন। আহতরা হলেন- খুলনার ফুলবাড়ীয়া গেটের এলাকার হুমায়ন কবীবের ছেলে ট্রাক (চালক) ড্রাইভার সোহাগ আলী (২৫) ও একই এলাকার ট্রাকের হেলপার অপু (২৪)। আহতদের গাংনী উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করা হয়েছে। ট্রাক চালক সোহাগের  অবস্থা মোটামুটি  ভালো হলেও অপুর শারীরিক অবস্থার অবনতি হওয়ায় তাকে রাতে কুষ্টিয়া মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে রেফার্ড করা হয়েছে। গতকাল শুক্রবার বিকেল  সাড়ে ৩ টার দিকে পূর্ব মালসাদহ-বারাদী সড়কে মোটরসাইকেল নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে আহতের ঘটনা ঘটে। স্থানীয়রা জানান, ট্রাকের চালক সোহাগ আলী ও তার হেলপার অপু গাংনী উপজেলার হাড়িয়াদহ বাজারে ট্রাকে বাঁশ লোড করছিলেন। বিকেলে ক্ষুধা লাগলে তারা স্থানীয় একজনের মোটরসাইকেলে দু’জন  দ্রুতগতিতে হাড়িয়াদহ গ্রাম থেকে গাংনী শহরে খাওয়ার জন্য যাচ্ছিলেন। পূর্বমালসাদহ মোড় নামক স্থানে পৌঁছালে চালক সোহাগ নিয়ন্ত্রণ হারালে গাছের সাথে ধাক্কা খায়। এ সময় তারা দু’জন মারাত্বকভাবে হয়। আহত অপুর অবস্থা আশঙ্কাজনক হওয়ায় তাকে কুষ্টিয়া মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে রেফার্ড করা হয়েছে।

দৌলতপুরে ফুটবল প্রশিক্ষণ ক্যাম্পের উদ্বোধন

দৌলতপুর প্রতিনিধি ॥ ‘ফুটবলে সোনালী জীবন গড়ি, চলো জাতীয় পর্যায়ে খেলার স্বপ্ন ছুই’ এই শ্লোগান নিয়ে কুষ্টিয়ার দৌলতপুরে দীর্ঘ মেয়াদী ফুটবল প্রশিক্ষণ ক্যাম্পের উদ্বোধন করা হয়েছে। গতকাল শনিবার বিকেল ৪টায় উপজেলার মথুরাপুর হাইস্কুল মাঠে এ প্রশিক্ষণ ক্যাম্পের উদ্বোধন করা হয়। উদ্বোধন অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি ছিলেন, মথুরপুর পিপল্স ডিগ্রি কলেজের অধ্যক্ষ সেলিম আহম্মদ। ফুটবল প্রশিক্ষণ ক্যাম্পের উদ্বোধক ছিলেন, প্রকৌশলী কল্লোল ফরহাদ। সভাপতিত্ব করেন, মাহফুজুল হক। মথুরাপুর এফডিএফ একাডেমির আয়োজনে দীর্ঘ মেয়াদী এ প্রশিক্ষণ ক্যাম্পের উদ্বোধন করা হয়।

ঝিনাইদহে ৭ম শ্রেণীর স্কুল ছাত্রী ধর্ষনের শিকার

ঝিনাইদহ প্রতিনিধি ॥ ঝিনাইদহের মহেশপুর উপজেলার বাথানগাছি গ্রামে সপ্তম শ্রেণির এক স্কুলছাত্রীকে ধর্ষণের অভিযোগ উঠেছে। এ ঘটনায় গতকাল শুক্রবার সকালে নির্যাতিতার পিতা মহেশপুর থানায় একটি ধর্ষণ মামলা করেছে। মহেশপুর থানার ওসি রাশেদুল আলম জানান, বৃহস্পতিবার সন্ধায় ওই স্কুল ছাত্রী বাড়ির সামনে দাঁড়িয়ে ছিল। সেসময় পার্শবর্তী কালুহাটি গ্রামের শরিফুল ইসলামের ছেলে নবম শ্রেণীর ছাত্র রাশেদুল তাকে জোরপুর্বক তুলে নিয়ে পার্শবর্তী কলাবাগানে নিয়ে ধর্ষন করে। মেয়েটি বাড়ি এসে ঘটনাটি জানায়। এরপর মেয়েটির পিতা বাদী হয়ে সকালে মহেশপুর থানায় এসে রাশেদুল ইসলামকে আসামী করে একটি ধর্ষণ মামলা দায়ের করে। এ ঘটনার পর রাশেদুল ইসলাম পালিয়ে যায়। মেয়েটির ডাক্তারী পরীক্ষা করার জন্য ঝিনাইদহ সদর হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে।

সাজেদুর রহমান বাবলু’র দোয়া মাহফিল অনুষ্ঠিত

কুষ্টিয়া জেলা বিএনপির সিনিয়র যুগ্ম-সম্পাদক বীরমুক্তিযোদ্ধা খন্দকার সাজেদুর রহমান বাবলু’র মৃত্যুতে দোয়া মাহফিল অনুষ্ঠিত হয়েছে। গতকাল শুক্রবার বাদ আসর হাউজিং কদমতলা জামে মসজিদে পরিবারের উদ্যেগে এই দোয়া মাহফিল অনুষ্ঠিত হয়। মরহুমের জীবনের উপর আলোচনা করেন বিএনপির চেয়ারপার্সনের উপদেষ্টা, কুষ্টিয়া জেলা বিএনপির সভাপতি ও সাবেক এমপি বীরমুক্তিযোদ্ধা সৈয়দ মেহেদী আহমেদ রুমী। দোয়া মাহফিলে উপস্থিত ছিলেন, কুষ্টিয়া জেলা বিএনপির সাংগঠনিক সম্পাদক শামীম উল হাসান অপু, খন্দকার শাসুজ্জাহিদ, যুব বিষয়ক সম্পাদক মেজবাউর রহমান পিন্টু, ধর্ম বিষয়ক সম্পাদক শফিউল ইসলাম টিটু, সহ-আইন বিষয়ক সম্পাদক এ্যাড. খাদেমুল ইসলাম, মিরপুর উপজেলা বিএনপির সাধারণ সম্পাদক রহমত আলী রব্বান, সাংগঠনিক সম্পাদক সাইদুল ইসলাম মুকুল, শহর বিএনপির নেতা খন্দকার মিয়ারুল ইসলাম দুলাল, আবু তালেব, আব্দুর রশিদ, লিটন মাহমুদ, জেলা যুবদলের সভাপতি আল আমিনা কানাই, সাধারন সম্পাদক কামাল উদ্দিন, জেলা স্বেচ্ছাসেবক দলের যুগ্ম-সম্পাদক বকুল আলী, জেলা ছাত্রদলের সাংগঠনিক সম্পাদক রোকনুজ্জামান রাসেল, ছাত্র নেতা কিবরিয়া, মিজানুর রহমানসহ আইনজীবি, শিক্ষক, মুক্তিযোদ্ধা, ব্যবসায়ীসহ বিভিন্ন পেশার মানুষ দোয়া মাহফিলে শরিক হন। সংবাদ বিজ্ঞপ্তি

সভাপতি বদর ॥ সাধারণ সম্পাদক বাদশা

কালুখালীর মৃগী ইউপি আওয়ামীলীগের ত্রি-বার্ষিক সম্মেলন অনুষ্ঠিত

ফজলুল হক ॥ গতকাল শুক্রবার রাজবাড়ীর কালুখালী উপজেলার মৃগী ইউনিয়ন আওয়ামীলীগের ত্রি-বার্ষিক সম্মেলন অনুষ্ঠিত হয়েছে। মৃগী বহুমূখী উচ্চ বিদ্যালয় মাঠ প্রাঙ্গণে এ উপলক্ষ্যে দিনব্যাপী সম্মেলনে প্রধান অতিথি হিসেবে বক্তব্য রাখেন রাজবাড়ী-২ আসনের সংসদ সদস্য বীর মুক্তিযোদ্ধা মোঃ জিল্লুল হাকিম। তিনি তার বক্তব্যে বলেন, যারা আওয়ামীলীগ করে তারা বিভিন্ন পরীক্ষায় উত্তীর্ণ হয়। আপনারা নিজ নিজ অবস্থানে থেকে দলের পক্ষে কাজ করে যাবেন। যুদ্ধকালীন সময় মৃগী ইউনিয়ন মুক্তিযোদ্ধাদের আশ্রয়স্থল ছিলো বলে উল্লেখ করে বলেন মৃগী ইউনিয়ন আওয়ামীলীগের একটা বড় দূর্গ। অনুষ্ঠানে প্রথম অধিবেশনে ইউনিয়ন আওয়ামীলীগের সভাপতি আনোয়ার হোসেন এর সভাপতিত্বে ইউপি আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক আবুল হোসেন জোয়াদ্দারের সঞ্চালণায় বিশেষ অতিথি হিসেবে বক্তব্য রাখেন পাংশা উপজেলা আওয়ামীলীগের সভাপতি একেএম শফিকুল মোর্শেদ আরুজ, জেলা আওয়ামীলীগের সাংগঠনিক সম্পাদক মোঃ আজিজুর রহমান, উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান আলিউজ্জামান চৌধুরী (টিটো), উপজেলা আওয়ামীলীগের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি মুক্তিযোদ্ধা আঃ খালেক মাস্টার, ভারপ্রাপ্ত সাধারণ সম্পাদক খায়রুল ইসলাম খায়ের, মৃগী ইউপি চেয়ারম্যান শহিদুজ্জামান সাগর প্রমূখ বক্তব্য রাখেন। অনুষ্ঠানে দ্বিতীয় অধিবেশনে উপজেলা আওয়ামীলীগের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি আঃ খালেক মাষ্টারের সভাপতিত্বে সম্মেলনের কার্যক্রম শুরু হয়। স্বতস্ফুর্ত উপস্থিতিতে প্রস্তাব সমর্থনের মাধ্যমে বদর উদ্দিন সরদারকে বিনা প্রতিদ্বন্দ্বীতায় সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদক মোঃ রফিকুল ইসলাম বাদশা নির্বাচিত হয়।

 ॥ নাজীর আহ্মদ জীবন ॥

বারো শরীফের মহান ইমাম হযরত শাহ সূফী মীর মাস্উদ হেলাল (রঃ) এর জীবন ও দর্শন

“মোহাম্মদ ভূমি” এ সবুজ বাংলার; ‘পূন্যভূমি কুষ্টিয়া’ থেকে  শেষ জামানার মানুষের শান্তি ও মুক্তির জন্য যে মানব দরদী  সাধক বাংলাদেশ ও পশ্চিম বাংলার বিভিন্ন  স্থানে জাতি, ধর্ম ধনী, গরীব নির্বিশেষে মানুষকে ভালবেসে দিয়েছিলেন  বারো শরীফ তথা মোহাম্মদী তরীকার দাওয়াত, তিনি হলেন আল্লাহর এক বিশিষ্ট ওলী, মহান রাসূল প্রেমিক আওলাদে রাসূল; শেষ জামানার শেষ ইমাম ও মোজাদ্দেদ হযরত শাহ্ সূফী মীর মাস্উদ হেলাল (রঃ)। কোরআনে ওলী বা ওয়ালী শব্দটির অর্থ আল্লাহর বন্ধু। ওলী তিনিই যিনি কঠোর সাধনার দ্বারা রিপুর তাড়না থেকে নিজেকে রক্ষা করে, আল্লাহর নিকট নিজ মর্যাদা বৃদ্ধি করেন এবং বন্ধন মুক্তি করতে পারেন ও বহু অলৌকিক ক্ষমতার অধিকারী ওলীদের হাতে নিখিল বিশ্বের শাসন ব্যবস্থা ন্যস্ত থাকে। যাকে বলা হয় আধ্যত্মিক প্রশাসন।” (ইসলামী বিশ্বকোষ) ইমাম (রঃ) বলেছিলেন ঃ ‘আতরের শিশি হাতে থাকলে তার সুগন্ধ একটু হাতে লাগবেই। সে সুগন্ধ ছড়াবে। লোহা যতক্ষণ  আগুনের মধ্যে থাকে ততক্ষণ সে আগুনের গুণে গুণান্বিত থাকে। আল্লাহর ওলীরা এরূপ।” বই, কিতাব পড়ে আলেম ও বিশ্ববিদ্যালয়ের ডিগ্রী অর্জন করা যায়, ওলী হওয়া যায় না। ওলীত্বের সার্টিফিকেট স্বয়ং আল্লাহ দান করেন। তাই ইমাম গায্যালী বলেছেন ঃ “আমি বিষ্মিত হয় বারবার আমি বিষ্মিত হয় বারবার কেন একজন ডাক্তার ওলী হয় না আল্লাহর।” মাওলানা জামী বলেছেন ঃ আল্লাহর প্রেমে মওগণকে তুচ্ছ মনে করো না, তারা ধনাগার ও রাজমুকুটহীন বাদশাহ্র দল।” বলা হয়েছে ঃ আল্লাহওয়ালাদের অবর্তমানে ও তাঁদের রাজত্ব অক্ষুন্ন থাকে। আল্লাহ বলেন ঃ যে ব্যক্তি আমার ওলীর সাথে শত্র“তা পোষণ করে তার প্রতি আমার যুদ্ধ ঘোষণা।” (বুখারী)।  রাসূল (সাঃ) বলেছেন ঃ নিশ্চয়ই আল্লাহতায়ালা এই উম্মতের জন্য প্রত্যেক শতাব্দীর প্রারম্ভে এমন এক ব্যক্তিকে পাঠাবেন যিনি উন্মতের স্বার্থে তার দ্বীনের (ইসলাম) সংস্কার সাধন করবেন।” (আবু দাউদ) মোজাদ্দেদ কোন দাবী করার বিষয় নয়, করে দেখানোর বিষয়। যার দ্বারা ঐ সময় ইসলামের সত্য সুন্দর রূপটির বিকাশ ঘটবে এবং যুগের চ্যালেঞ্জ মোকাবিলায় ইসলামের শ্রেষ্ঠত্ব প্রমাণে সক্ষম হবেন। তিনিই মোজাদ্দেদ।” তাই ১৪’শ হিজরীর সূচনায় ১লা মহরমের চাঁদ দেখে ১২ শরীফের মহান ইমাম (রঃ) বলেছিলেন ঃ ঝড়ের পর চাঁদ উঠেছিল ১৪’শ এর চাঁদ। যারা দেখেছেন তারা বলছিল যে, তাকালো যাচ্ছিল না। চাঁদ এবার সত্যই উঠেছে। বহু বছর পর, ১০০০ বছর পর, আবার ১০০০ বছর আলো দিবে।

সাধনা জীবনের একটা সময় উনার কাটে ময়মনসিংহের মধুপুর জঙ্গলে। ঐ সময় শরীয়ত মেনে বহু এবাদত করে বহু বই কিতাব পড়ে দেখলেন আল্লাহ প্রাপ্তি হ’ল না। ঐ সময় কোরআনের এক আয়াত “হে ইমানদারগণ! আল্লাহকে ভয় কর এবং তার দিকে ‘ওছিলা’ অন্বেষণ কর এবং তার পথে প্রাণপন চেষ্টা কর যেন তোমরা সুফল প্রাপ্ত হও।” (সূরা ঃ মায়েদা) এ আয়াত পড়ার পর তিনি মুর্শিদ ধরার প্রয়োজন অনুভব করেন। কথায় বলে, লাইন ছাড়া চলে না রেলগাড়ী। সেটা পেলেন চট্টগ্রামে মাইজভান্ডার শরীফে মরহুম মাওলানা আহমদুল্লাহ এর কাছে। বলা হল রানা খোল গ্রামে তার খলিফার কাছে মুরিদ হতে। মুরিদ হবার পর সাধনার পরিবর্তন হ’ল। কঠোর সাধনায় মাত্র ২৭ বছর বয়সে বড় পীর সাহেব খেলাফত দেন। এরপর খাজাবাব দেন। নকশবন্দ ও মোজাদ্দেদী তরীকায় ও খেলাফত পান। এতসব পাবার পরও শান্তি পেলেন না। আরো কঠোর সাধনায় অস্থিচর্মসার হলেন। এবার পেলেন পরম অর্জন। ১৯৭৫ এর ১৬ই শাবান সোমবার ৮ই ভাদ্র ২৫শে আগষ্ট ১২ শরীফ তথা মোহাম্মদী তরীকা। ১৯৮৪ তে পেলেন ১২ শরীফের সর্ব্বোচ্চ সম্মান শেষ জামানার শেষ ইমাম ও মোজাদ্দেদ উপাধি।

তাঁর চিন্তা দর্শন ঃ তাঁর চিন্তা দর্শন ও থটস্ ছিল ধর্মকে ব্যবহারের ক্ষেত্রে যুগধর্মী সংস্কার মুখী। বলেছিলেন; আজ ১৪’শ বছর পূর্বের প্রচলিত সব বিধি বিধান হুবহু যদি আমরা এ সময়ে চালাতে চায় তা হবে বাড়াবাড়ী ও গোড়ামীর নামান্তর। তাই ইসলামের মূল বিষয়গুলো ঠিক রেখে প্রয়োজন  সংস্কার। তাঁর ধর্মীয় দর্শণ ছিল ঃ প্রেম। তাই এবাদতে প্রেম না থাকলে  সেই এবাদত ফল আনতে পারে না। রাসূল প্রেম ছাড়া আল¬াহ পাওয়া যায় না।

সমাজ দর্শন ঃ বলেছিলেন সমাজ ও যুগের পরিবর্তনে প্রথার পরিবর্তন আল্লাহ নিজে করেছেন। তিনি সমাজ ও ধর্মীয় সংস্কার করে সমাজ হতে দুর করতে চেয়েছিলেন অন্যায়, শোষন ও ধর্মান্ধতা।

প্রতি সোমবার ও মঙ্গলবার বারো শরীফ দরবারে মেয়েরা বাদ আছর ও ছেলেরা বাদ এশা দরুদ ও সালাম পাঠ করে। এ দরবারে সবচেয়ে বড় অনুষ্ঠান পবিত্র ঈদে মিলাদুন্নবী বা ফাতেহা শরীফ। সব ধর্মের মানুষের জন্য এ দরবার এ মোহাম্মদী।  শুধু পরিস্কার-পরিচ্ছন্ন বা পবিত্র হযে আসতে হবে। আল্লাহ আমাদের দয়া করুন।

আসাফো কুষ্টিয়ার ৬ উপজেলার দ্বি-বার্ষিক সম্মেলন অনুষ্ঠিত

গতকাল শুক্রবার বিকেলে কুষ্টিয়া জেলা আওয়ামীলীগের কার্যালয়ে আওয়ামী সাংস্কৃতিক ফোরাম (আসাফো) এর কুষ্টিয়ার ৬ উপজেলার দ্বি-বার্ষিক সম্মেলন অনুষ্ঠিত হয়েছে। সম্মেলনে প্রধান অতিথি ছিলেন কুষ্টিয়া জেলা আওয়ামীলীগের সভাপতি আলহাজ্ব সদর উদ্দিন খান। সম্মেলন উদ্বোধন করেন বাংলাদেশ আওয়ামী সাংস্কৃতিক ফোরাম (আসাফো) এর সভাপতি সাইদুর রহমান সজল। প্রধান অতিথি তার বক্তব্যে বলেন, ৭১ সালে মুক্তিযুদ্ধের সময় যেভাবে শিল্পীরা মুক্তিযোদ্ধাদের উৎসাহ যুগিয়েছেন সেভাবে আসাফো আওয়ামীলীগের উন্নয়ন বেগবান করতে তাদের গান ও অভিনয়ের মাধ্যমে তুলে ধরে সহযোগিতা করবে।উদ্বোধক আসাফো’র সভাপতি সাইদুর রহমান সজল তার বক্তব্যে বলেন, আসাফো একটি প্রতিজ্ঞা, আসাফো একটি অঙ্গীকার। ৭১ মুক্তিযুদ্ধের সময় শিল্পীরা অনেক সহযোগিতা করেছিল। আমরা মুক্তিযুদ্ধের চেতনা সকলের মাঝে ছড়িয়ে দিতে এই সংগঠন করেছি। এই সংগঠন বঙ্গবন্ধুর আদর্শ ধারণ করে চলে।আসাফো’র কুষ্টিয়া জেলা শাখার সভাপতি হাসিবুর রহমান রিজুর সভাপতিত্বে সম্মলনে বিশেষ অতিথি ছিলেন কুষ্টিয়া জেলা আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক বীর মুক্তিযোদ্ধা আজগর আলী, আসাফো সাধারণ সম্পাদক শাহাদৎ হোসেন লিটন, জেলা আওয়ামীলীগের দপ্তর সম্পাদক হাজী তরিকুল ইসলাম মানিক, জেলা মহিলা আওয়ামীলীগের সভাপতি জেব উন নিসা সবুজ, আসাফো  প্রেসিডিয়াম সদস্য প্রফেসর আকমল হোসেন, সাংগঠনিক সম্পাদক এস. এম ইকবাল হোসেন।সম্মেলন অনুষ্ঠান পরিচালনা করেন আসাফো কুষ্টিয়া জেলা শাখার সাধারণ সম্পাদক আলমগীর আলী ও সিনিয়র যুগ্ন সাধারন সম্পাদক এম সোহাগ হাসান।বক্তব্য শেষে কুষ্টিয়ার ৬ উপজেলার আসাফো’র কমিটি  ঘোষণা করেন কেন্দ্রীয় সভাপতি সাইদুর রহমান সজল। কুষ্টিয়া সদর উপজেলার সভাপতি জাফর আহমেদ ও সাধারণ সম্পাদক এমদাদুল হক। খোকসা উপজেলা সভাপতি খন্দকার সেলিম রেজা ও সাধারণ সম্পাদক শফিকুর জামান। কুমারখালী উপজেলা সভাপতি শেখ কামরুজ্জামান রতন ও সাধারণ সম্পাদক শিমুল পারভেজ। মিরপুর উপজেলা সভাপতি আসাদুজ্জামান মিঠু ও সাধারণ সম্পাদক কারিবুল ইসলাম। ভেড়ামারা উপজেলা সভাপতি আনোয়ার পারভেজ শান্ত ও সাধারণ সম্পাদক ডাঃ কামরুল ইসলাম মনা।  দৌলতপুর উপজেলা সভাপতি মারুফা ইয়ামিন সুরভী ও সাধারণ সম্পাদক সবুজ জোয়াদ্দার।এ সময় উপস্থিত ছিলেন, আসাফো’র কুষ্টিয়া জেলা শাখার সহ-সভাপতি তোফাজ্জেল হোসেন, যুগ্ম সম্পাদক নজরুল ইসলাম প্রধান, সাংগঠনিক সম্পাদক জিল্লুর রহমান, দপ্তর সম্পাদক মাহমুদ আল হাফিজ অভি, প্রচার সম্পাদক মনির আহমেদ, উপ-প্রচার সম্পাদক আল-আমিন খান রাব্বি, সমাজ কল্যাণ বিষয়ক সম্পাদক জহুরল ইসলাম, উপ যুব ও ক্রীড়া সম্পাদক ফজলুর রহমান, সদস্য জায়েদুল হক মতিন, নুরুল ইসলাম, অনুপ কুমার প্রামানিক, রজব আলী, লিখন আহমেদ। কমিটি ঘোষণা শেষে মনোজ্ঞ সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান অনুষ্ঠিত হয়। সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান উপস্থাপনা করেন শরিফুল আলম সিদ্দিক কচি সাংস্কৃতিক ব্যাক্তিত্ব ও কবি। সংবাদ বিজ্ঞপ্তি

আবরার হত্যা 

অমিত ও তোহা রিমান্ডে

ঢাকা অফিস ॥ বুয়েট ছাত্র আবরার ফাহাদ হত্যা মামলায় গ্রেপ্তার আলোচিত ছাত্রলীগ নেতা অমিত সাহা এবং এজাহারভুক্ত আসামি হোসেন মোহাম্মদ তোহাকে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য পাঁচ দিন করে রিমান্ডে পেয়েছে গোয়েন্দা পুলিশ। ঢাকার মহানগর হাকিম মো. সারাফুজ্জামান আনসারী  শুক্রবার ওই দুই শিক্ষার্থীর জামিন নাকচ করে রিমান্ডে পাঠানোর আবেদন মঞ্জুর করেন। বৃহস্পতিবার ঢাকার সবুজবাগ এলাকা থেকে অমিত সাহা এবং গাজীপুরের মাওনা থেকে তোহাকে গ্রেপ্তার করে গোয়েন্দা পুলিশ। সিভিল ইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগের ছাত্র অমিত বুয়েট ছাত্রলীগের আইনবিষয়ক উপসম্পাদক। আলোচিত এ হত্যাকা-ের অন্যতম সন্দেহভাজন হিসেবে তার নাম আসার পরও মামলায় তার নাম না থাকা নিয়ে গত দুদিন ধরেই নানা আলোচনা চলছিল। আর যন্ত্র প্রকৌশল বিভাগের দ্বিতীয় বর্ষের ছাত্র তোহা এ হত্যা মামলার ১১ নম্বর আসামি। বুয়েটের শেরোংলা হলের আবাসিক ছাত্র তোহাও ছাত্রলীগের সঙ্গে জড়িত। শুক্রবার তাদের আদালতে হাজির করে ১০ দিন করে রিমান্ডে নেওয়ার আবেদন করেন মামলার তদন্ত কর্মকর্তা গোয়েন্দা পুলিশের পরিদর্শক মো. ওয়াহিদুজ্জামান। পুলিশের রিমান্ড আবেদনের পক্ষে শুনানি করেন এ আদালতে রাষ্ট্রপক্ষের আইনজীবী হেমায়েত উদ্দিন খান হিরণ। অন্যদিকে দুই বুয়েট ছাত্রের পক্ষে রিমান্ডের বিরোধিতা করে জামিনের আবেদন করেন আইনজীবী মো. আইয়ুব হোসাইন। শুনানি শেষে বিচারক জামিন নাকচ করে দুই আসামিকে ৫ দিন  করে রিমান্ডে নিয়ে জিজ্ঞাসাবাদের অনুমতি দেন। তড়িৎ কৌশল বিভাগের দ্বিতীয় বর্ষের ছাত্র আবরার ফাহাদকে গত রোববার রাতে ওই হলের ২০১১ নম্বর কক্ষে ডেকে নিয়ে পিটিয়ে হত্যা করে ছাত্রলীগের নেতাকর্মীরা। এ মামলায় এ নিয়ে মোট ১৭ জনকে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ। তাদের মধ্যে বুয়েট ছাত্রলীগের উপ-সমাজসেবা সম্পাদক ইফতি মোশাররফ সকাল বৃহস্পতিবার আদালতে স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দিয়েছেন। আবরারকে কীভাবে ক্রিকেট স্টাম্প আর স্কিপিং রোপ দিয়ে কয়েক ঘণ্টা ধরে বেধড়ক পেটানো হয়েছিল, সেই ভয়ঙ্কর বিবরণ এসেছে বায়ো মেডিকেল ইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগের তৃতীয় বর্ষের ছাত্র সকালের জবানবন্দিতে। শুনানির পর অমিত আদালতে উপস্থিত সাংবাদিকদের প্রশ্নে দাবি করেন, ঘটনার দিন তিনি শাজাহানপুরে বন্ধুর বাসায় ছিলেন। আবরারকে পেটানো হবে বা মেরে ফেলা হবে- তা তিনি জানতেন না।

বুয়েট প্রশাসন আরেকটু সতর্ক থাকলে হত্যাকান্ড নাও ঘটতে পারতো – স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী

ঢাকা অফিস ॥ স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান কামাল বলেছেন, বুয়েট প্রশাসনের আরেকটু কেয়ারফুল (সতর্ক) থাকার দরকার ছিল। আরেকটু সতর্ক থাকলে হয়তো আবরার হত্যাকান্ডের মতো ঘটনা নাও ঘটতে পারতো। শুক্রবার দুপুরে তেজগাঁওয়ে বাংলাদেশ টেক্সটাইল বিশ্ববিদ্যালয়ের নবনির্মিত প্রধান ফটক উদ্বোধন শেষে সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে একথা বলেন তিনি।

আর কোনো বিশ্ববিদ্যালয়ে যাতে আবরার হত্যার মতো কোনো ঘটনা না ঘটে সেজন্য প্রশাসনের প্রতি কী নির্দেশনা দেবেন জানতে চাইলে তিনি বলেন, বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন না ডাক দিলে পুলিশ ভেতরে ঢোকে না, আপনারা সেটা জানেন। এ জায়গাটিতে বুয়েট কর্তৃপক্ষের আরেকটু সতর্ক থাকার দরকার ছিল। আরেকটু সতর্ক থাকলে হয়তো এ ধরনের ঘটনা নাও ঘটতে পারতো। ভবিষ্যতে প্রশাসন ছাত্রদের প্রতি আরও নজর দেবে, দায়িত্ববান হবে বলে মনে করি। মন্ত্রী বলেন, আবরার হত্যাকান্ড যারা সংঘটিত করেছিল এদের প্রায় সবাইকে আমরা ধরে ফেলেছি। এ পর্যন্ত ১৭ জনকে আটক করা হয়েছে। ইতোমধ্যে ১ জন ১৬৪ করেছে (স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দিয়েছেন)। আমি আগেও বলেছি আজও বলছি, অত্যন্ত দ্রুততার সঙ্গে এ মামলার চার্জশিট দেয়া হবে, আশা করছি তদন্ত সংশ্লিষ্ট সংস্থা দ্রুততম সময়ের মধ্যে মামলা তদন্ত সম্পন্ন করবে। সাথে সাথে আমি আহ্বান রাখবো, এ ধরনের হত্যাকান্ড, এ ধরনের মেধাবী ছাত্র যারা কি-না আমাদের ভবিষ্যৎ, যে প্রজন্মকে নিয়ে আমরা অহঙ্কার করি, এ ধরনের ঘটনায় যাতে তারা হারিয়ে না যায়, যারা এ কাজটি করেছেন, এর মতো খারাপ কাজ, এর মতো গর্হিত কাজ এর আগে আর ঘটেনি। স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, এর আগে বিশ্ববিদ্যালয়ে আরও অনেক ঘটনাই ঘটেছে, আমরা সানি হত্যাও দেখেছি। কিন্তু এ হত্যাকান্ডটি সবার হৃদয়ে দাগ কেটেছে। আমি আশা করবো আমাদের ছাত্র সমাজ এ ধরনের ঘটনা আর দেখবে না। যাতে না ঘটে সেজন্য তারাও সজাগ থাকবে। আবরার হত্যার পেছনে মূল কারণ কী জানতে চাইলে বলেন, এ খুনের পেছনে কারণটা কী এটা আমাদের দেখতে হচ্ছে। যারা ধরা পড়ছে তাদের জিজ্ঞাসাবাদ করা হচ্ছে, তদন্ত চলছে, এর পেছনে মোটিভটা কী জানার চেষ্টা চলছে। এমনি এমনি একজন আরেকজনকে হত্যা করবে এটা যেমন বিশ্বাসযোগ্য নয়, এর পেছনে নিশ্চয়ই কোনো কারণ আছে, আরও কিছু উদ্দেশ্য আছে। এর সবই আমরা খতিয়ে দেখছি। স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, আমরা মনে করি, বিশ্ববিদ্যালয়ে যারা পড়াশোনা করতে এসেছে, তারা সবাই মেধাবী। এ ধরনের মেধাবীরাই এ ধরনের ঘটনা ঘটিয়েছে। তার ভেতরে নিশ্চয়ই কোনো কারণ রয়েছে। সে কারণগুলো উদঘাটন করে নিখুঁত ও তথ্যসমৃদ্ধ চার্জশিট দিতে চাই। উল্লেখ্য, ভারতের সঙ্গে সাম্প্রতিক কয়েকটি চুক্তি নিয়ে ফেসবুকে মন্তব্যের সূত্র ধরে শিবির সন্দেহে আবরারকে ডেকে নিয়ে জিজ্ঞাসাবাদের এক পর্যায়ে বুয়েট ছাত্রলীগের নেতাকর্মীরা ৬ অক্টোবর রাতে আবরারকে পিটিয়ে হত্যা করেন বলে বুয়েটের শেরে বাংলা হলের শিক্ষার্থীদের অভিযোগ। ওই ঘটনায় বুয়েট ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক মেহেদী হাসান রাসেলসহ গ্রেফতার ১৩ জনকে রিমান্ডে পেয়েছে পুলিশ। কেন্দ্রীয় ছাত্রলীগ সাংগঠনিক তদন্তের ভিত্তিতে বুয়েট ছাত্রলীগের ১১ জনকে স্থায়ীভাবে বহিষ্কার করার কথা জানিয়েছে। ঘটনার পর সোমবার থেকেই আন্দোলন করে আসছেন শিক্ষার্থীরা। হত্যার ঘটনার প্রায় ৪০ ঘণ্টা পর উপাচার্য অধ্যাপক সাইফুল ইসলাম প্রকাশ্যে আসেন। উপাচার্য শিক্ষার্থীদের সামনে না আসায় ক্ষোভ জানান শিক্ষার্থীরা। পরে মঙ্গলবার বিকেল ৫টার মধ্যে উপাচার্য সশরীরে এসে এ বিষয়ে জবাবদিহি না করলে কঠোর কর্মসূচি দেয়ার হুঁশিয়ারি দেন তারা। এরপর সন্ধ্যা ৬টার পর উপাচার্য শিক্ষার্থীদের সামনে আসেন। শিক্ষার্থীদের সামনে এসে তোপের মুখে পড়েন উপাচার্য। তারা ভিসিকে বলেন, ‘এটা একটা খুন, আপনাকে স্বীকার করতে হবে’।

‘ভারতে পালানোর পথে’ কাউন্সিলর মিজান গ্রেপ্তার

ঢাকা অফিস ॥ চলমান ‘শুদ্ধি অভিযানের’ অংশ হিসেবে ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশনের কাউন্সিলর মোহাম্মদপুর থানা আওয়ামী লীগের আলোচিত নেতা হাবিবুর রহমান মিজানকে আটক করেছে র‌্যাব। র‌্যাব সদর দপ্তরের সহকারী পরিচালক মিজানুর রহমান শুক্রবার বলেন, “হাবিবুর রহমান মিজান পাশের দেশে পালিয়ে যাওয়ার চেষ্টায় ছিলেন। গত রাতে শ্রীমঙ্গল থেকে তাকে আটক করা হয়।” ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশনের ৩২ নম্বর ওয়ার্ডের কাউন্সিলর হাবিবুর রহমান মিজান মোহাম্মদপুর থানা আওয়ামী লীগের সাবেক সাধারণ সম্পাদক। হত্যা, মাদকের কারবার, চাঁদাবাজিসহ বিভিন্ন অভিযোগের সঙ্গে জড়িয়ে আছে তার নাম। দুর্নীতির বিরুদ্ধে সরকারের চলমান ‘শুদ্ধি অভিযানের’ মধ্যে হঠাৎ করেই লাপাত্তা হন ক্ষমতাসীন দলের নেতা মিজান। গত মঙ্গলবার রাতে মোহাম্মদপুরের আওরঙ্গজেব রোডে মিজানের ফ্ল্যাটে অভিযান চালায় র‌্যাব। কিন্তু সেখানে তাকে পাওয়া যায়নি। মোহাম্মদপুরের অনেকে এই ওয়ার্ড কাউন্সিলরকে চেনেন ‘পাগলা মিজান’ হিসেবে। কথিত আছে, কয়েক দশক আগে একবার পুলিশের তাড়া খেয়ে পুকুরে নেমেছিলেন মিজান। পরে গ্রেপ্তার এড়াতে পরনের পোশাক খুলে রেখে তিনি পুকুর থেকে উঠে আসেন, সেই থেকে তার ওই নাম।

আবরার হত্যা

স্বীকারোক্তি দিলেন জিয়ন

ঢাকা অফিস ॥ বুয়েট শিক্ষার্থী আবরার ফাহাদ হত্যা মামলায় আদালতে স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দিয়েছেন আরেক আসামি মেফতাহুল ইসলাম জিয়ন। পাঁচ দিনের রিমান্ডের চার দিন শেষে বুয়েট শাখা ছাত্রলীগের বহিষ্কৃত উপ-ক্রীড়া সম্পাদক জিয়নকে শুক্রবার ঢাকার মহানগর হাকিম আদালতে হাজির করা হয়। মহানগর হাকিম মো. সারাফুজ্জামান আনসারী তার  জবানবন্দি নথিভুক্ত করেন। বুয়েটের মেরিন ইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগের পঞ্চদশ ব্যাচের ছাত্র জিয়ন হাকিমের কাছে ১৬৪ ধারায় স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দিয়েছেন বলে পুলিশের অপরাধ তথ্য ও প্রসিকিউশন বিভাগের দপ্তর থেকে জানানো হয়। বুয়েটের শেরে বাংলা হলের আবাসিক ছাত্র ও তড়িৎ কৌশল বিভাগের দ্বিতীয় বর্ষের শিক্ষার্থী আবরারকে গত রোববার রাতে ছাত্রলীগের এক নেতার কক্ষে নিয়ে নির্যাতন চালিয়ে হত্যা করা হয়। পরদিন যে ১০ জনকে পুলিশ গ্রেপ্তার করে, তাদের একজন হলেন জিয়ন। ওই ১০ জনকে পাঁচ দিনের হেফাজতে নিয়ে গত ৮ অক্টোবর থেকে জিজ্ঞাসাবাদ করছিল পুলিশ। তাদের মধ্যে বুয়েট ছাত্রলীগের উপ-সমাজসেবা সম্পাদক বায়ো মেডিকেল ইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগের তৃতীয় বর্ষের ছাত্র ইফতি মোশাররফ সকাল বৃহস্পতিবার প্রথম স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দেন। তড়িৎ কৌশল বিভাগের দ্বিতীয় বর্ষের ছাত্র আবরার ফাহাদকে গত রোববার রাতে ওই হলের ২০১১ নম্বর কক্ষে ডেকে নিয়ে পিটিয়ে হত্যা করে ছাত্রলীগের নেতাকর্মীরা। আবরারকে কীভাবে ক্রিকেট স্টাম্প আর স্কিপিং রোপ দিয়ে কয়েক ঘণ্টা ধরে বেধড়ক পেটানো হয়েছিল, সেই ভয়ঙ্কর বিবরণ এসেছে বায়ো মেডিকেল ইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগের তৃতীয় বর্ষের ছাত্র সকালের জবানবন্দিতে। এ মামলায় মোট ১৭ জনকে গ্রেপ্তার করেছে গোয়েন্দা পুলিশ, যাদের মধ্যে আবরারের রুমমেট মো. মিজানুর রহমানও আছে। ওয়াটার রিসোর্সেস ইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগের তৃতীয় বর্ষের ছাত্র মিজানকে শুক্রবার আদালতে হাজির করা হলে মহানগর হাকিম মো. সারাফুজ্জামান আনসারী তাকে কারাগারে পাঠানো আদেশ দেন। পুলিশের পক্ষ থেকে তাকে রিমান্ডে নেওয়ার কোনো আবেদন করা হয়নি। আবরারের বাবার করা হত্যা মামলায় ১৯ জনের মধ্যে মিজানের নাম ছিল না। তবে তদন্তে হত্যাকান্ডে সংশ্লিষ্টতার তথ্য পাওয়ায় তাকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে বলে আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর পক্ষ থেকে জানানো হয়েছে।

পানি ঘোলা করার রাজনীতি না করতে বিএনপি’র প্রতি আহ্বান তথ্যমন্ত্রীর

ঢাকা অফিস ॥ তথ্যমন্ত্রী ড. হাছান মাহমুদ বুয়েটের শিক্ষার্থী আবরার ফাহাদের হত্যা নিয়ে ঘোলা পানিতে রাজনীতি না করার জন্য বিএনপি’র প্রতি আহ্বান জানিয়েছেন। গতকাল শুক্রবার জাতীয় প্রেসক্লাবের সামনে বাংলাদেশ স্বাধীনতা পরিষদ মানববন্ধন কর্মসূচিতে তিনি বলেন, ‘আবরার হত্যা নিয়ে তারা (বিএনপি) পানি ঘোলা করার চেষ্টা করছে। তারা অতীতেও পানি ঘোলা করার চেষ্টা করেছে, তবে তারা ব্যর্থ হয়েছে।’ বিএনপি’র ষড়যন্ত্র প্রতিহত করার জন্য আওয়ামী লীগ নেতা-কর্মীদের আরো সতর্ক থাকার আহ্বান জানিয়ে হাছান বলেন, বিএনপি নেতারা যদি পানি ঘোলা করতে চায় এবং ঘোলা পানিতে রাজনীতি করতে চায় তাহলে কঠোরভাবে তাদের প্রতিহত করা হবে। তিনি বলেন, কারো ব্যাপারে কোন দাবি তোলার আগেই প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নির্দেশে আবরার হত্যায় জড়িত সন্দেহভাজন বেশিরভাগ অভিযুক্তকে গ্রেফতার করা হয়েছে।আওয়ামী লীগের প্রচার ও প্রকাশনা সম্পাদক হাছান মাহমুদ বলেন, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ইতোমধ্যেই আশ্বাস দিয়েছেন, আবরার হত্যাকান্ডে জড়িতদের সর্বোচ্চ শাস্তি নিশ্চিত করা হবে। তিনি বলেন, ২০০২ সালে বিএনপি শাসনকালে প্রতিদ্বন্দ্বী দুই গ্র“প ছাত্রের মধ্যে টেন্ডার নিয়ে ক্যাম্পাসে বন্দুক যুদ্ধে বুয়েটের ছাত্রী সাদেকুন নাহার সনি নিহত হয়। তিনি প্রশ্ন তোলেন, ‘এ হত্যায় জড়িতদের শাস্তি দিতে ছাত্রদল অথবা বিএনপি কি কোন ব্যবস্থা নিয়েছিল?’ প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সাম্প্রতিক দিল্লী সফর প্রসঙ্গে তথ্যমন্ত্রী বলেন, তাঁর সফরকালে বাংলাদেশ ও ভারতের মধ্যে স্বাক্ষরিত চুক্তির ব্যাপারে বিএনপি সরকারের বিরুদ্ধে প্রপাগান্ডা চালাচ্ছে। তিনি বলেন, তারা (বিএনপি নেতারা) এ চুক্তি পড়েওনি তবুও তারা এ নিয়ে সরকারের বিরুদ্ধে প্রপাগান্ডা চালাচ্ছে এবং চুক্তির ব্যাপারে কর্মসূচি দিয়েছে। বিএনপি’র রাজনীতি মিথ্যার ওপর ভিত্তি করে একথা উল্লেখ করে হাছান মাহমুদ বলেন, ‘সংবাদ সম্মেলন ডেকে মিথ্যা বলছেন এটা আপনাদের (বিএনপি নেতৃবৃন্দ) রাজনীতি।’ সরকার সব সময় সমালোচনাকে স্বাগত জানায় একথা উল্লেখ করে তিনি বলেন, ‘আমাদের সমালোচনা করুন তবে অজ্ঞের মতো নয়।’ হাছান মাহমুদ বলেন, তারা প্রপাগান্ডা চালাচ্ছে যে সরকার প্রাকৃতিক গ্যাস রফতানি করবে। কিন্তু প্রকৃত ঘটনা হচ্ছে যে ভারতে রফতানি হবে এলপিজি, প্রাকৃতিক গ্যাস নয়।

শান্তিতে নোবেল পেলেন ইথিওপিয়ার প্রধানমন্ত্রী

ঢাকা অফিস ॥ চলতি বছর শান্তিতে নোবেল পেয়েছেন ইথিওপিয়ার প্রধানমন্ত্রী আবি আহমেদ। তিনি প্রতিবেশী ইরিত্রিয়ার সঙ্গে দীর্ঘদিনের দ্বন্দ্ব নিরসনের কারিগর হিসেবে বিবেচিত। শুক্রবার নরওয়ের স্থানীয় সময় বেলা ১১টায় (বাংলাদেশ সময় বিকেল ৩টা) রাজধানী অসলো থেকে নরওয়েজিয়ান নোবেল কমিটি শান্তিতে নোবেল পুরস্কার বিজয়ীর নাম ঘোষণা করেছে। নোবেল শান্তি পুরস্কারের ওয়েবসাইটে দেয়া তথ্য মতে, এ বছর নোবেল পুরস্কারের জন্য ৩০১টি মনোনয়ন জমা পড়েছে। যার মধ্যে ২২৩ জন ব্যক্তি এবং বাকি ৭৮টি প্রতিষ্ঠান। তবে গত ৫০ বছর ধরে বিজয়ীর নাম ঘোষণা করার আগে মনোনীতদের তালিকা প্রকাশ করে না নোবেল প্রদানকারী কর্তৃপক্ষ। এবার শততম নোবেল শান্তি পুরস্কার পেলেন আবি আহমেদ। শান্তি এবং আন্তর্জাতিক সহযোগিতায় গুরুত্বপূর্ণ অবদানের জন্য চলতি বছর তাকে নোবেল পুরস্কারে ভূষিত করা হয়। ২০১৮ সালের ১৫ ফেব্র“য়ারি জোটের নেতা হেইলেমারিয়াম হঠাৎ জোটের প্রধান ও প্রধানমন্ত্রীর পদ ছাড়ার ঘোষণা দেন। তিন বছর ধরে দেশটির আদিবাসী গোষ্ঠীগুলোর মধ্যে দ্বন্দ্ব চলে আসছিল। হেইলেমারিয়াম রাজনৈতিক অস্থিরতা নিয়ন্ত্রণে ছয় মাসের জন্য জরুরি অবস্থা জারি করেছিলেন। হেইলেমারিয়ামের পদ ছাড়ার পরই তার উত্তরসূরি হিসেবে ক্ষমতা পান ওরমো ক্ষুদ্র জাতিগোষ্ঠীর ৪২ বছর বয়সী আবি। মানবাধিকার লঙ্ঘন, ভিন্নমতাবলম্বীদের দমন ও বিচারবহির্ভূত হত্যাকা-ের অভিযোেগ রয়েছে ইথিওপিয়ার সরকারের বিরুদ্ধে। প্রধানমন্ত্রী হিসেবে ক্ষমতা গ্রহণের পর সরকারে বেশ কিছু পরিবর্তন আনেন আবি আহমেদ। এর মধ্যে কিছু ওয়েবসাইট ও টেলিভিশন চ্যানেলও অবরোধমুক্ত করেন তিনি। ২০১৯ সালের নোবেল বিজয়ীদের নাম ঘোষণা শুরু হয়েছে গত ৭ অক্টোবর থেকে। ওইদিন স্টকহোম ক্যারোলিনস্কা ইনস্টিটিউট থেকে চিকিৎসাবিদ্যায়, দ্য রয়াল ইনস্টিটিউট অব সায়েন্স থেকে ৮ অক্টোবর পদার্থবিদ্যায়, ৯ অক্টোবর রসায়নবিদ্যায় এবং ১০ অক্টোবর সাহিত্যে নোবেল বিজয়ীদের নাম ঘোষণা করা হয়। গত বছর যৌন সহিংসতা ও হয়রানির ব্যাপারে বিশ্বজুড়ে সচেতনতা তৈরির আন্দোলন করে শান্তিতে নোবেল পেয়েছিলেন কঙ্গোর ধাত্রীবিদ্যাবিশারদ ডেনিস মুকওয়েজি এবং জঙ্গিদের হাতে ধর্ষণের শিকার ইয়াজিদি নারী নাদিয়া মুরাদ।