ইমরানের পতন পর্যন্ত যুদ্ধ ঘোষণা – ফজলুর রহমান

ঢাকা অফিস ॥ প্রধানমন্ত্রী ইমরান খান সরকারের পতন পর্যন্ত যুদ্ধ চালিয়ে যাওয়ার ঘোষণা দিয়েছেন পাকিস্তানের ধর্মীয় সংগঠন জমিয়তে উলামায়ে ইসলাম ফজল (জেইউআই-এফ) প্রধান ফজলুর রহমান। তিনি আসন্ন আজাদি মার্চকে যুদ্ধের সঙ্গে তুলনা করেছেন। তিনি বলেন, যখন সরকার পতন হবে তখন এটি শেষ হবে। শনিবার পেসওয়ারে সাংবাদিক সম্মেলনে তিনি বলেন, সমস্ত দেশ আমাদের যুদ্ধক্ষেত্র। জমিয়তের প্রধান ঘোষণা দেন আগামী ২৭ অক্টোবর সরকারের বিরুদ্ধে লংমার্চ করা হবে ইসলামাবাদের উদ্দেশে। সেখান দলের পরিকল্পনা রয়েছে একটি সভা করার। তিনি বলেন, আমাদের কৌশল স্থির থাকবে না। আমরা যে কোনো পরিস্থিতি সামলাতে পরিবর্তন করতে পারি। তিনি জোর দিয়ে বলেন, এ পদযাত্রায় যোগদিতে সারা দেশ থেকে মানুষ বন্যার মতো আসছে এবং ভুয়া শাসকরা খড়ের মতো এতে ডুবে যাবে। অন্যান্য বিরোধী দল আপনাকে সহযোগিতা করছে কি-না জানতে চাইলে তিনি বলেন, আশা করছি মার্চে তাদের দেখবেন। শুরু থেকে সব দলই অভিযোগ করছে সাধারণ নির্বাচন জালিয়াতির মাধ্যমে হয়েছে এবং পুনরায় নির্বাচন দেয়া উচিত। সেগুলো একই পাতায় এবং একই মঞ্চে থাকা উচিত। বৃহস্পতিবার মাওলানা ফজলুর রহমান ইমরান খানের অযোগ্য সরকারকে উৎখাত করতে আগামী ২৭ অক্টোবর থেকে ‘আজাদি মার্চ’ শুরু করার ঘোষণা দিয়েছেন। এরপরই বিসয়টি নিয়ে পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রী ইমরান খান বলেছেন, পাকিস্তান পিপলস পার্টি (পিপিপি) ও পাকিস্তান মুসলিম লীগের (পিএমএল-এন) নির্দেশে উলামায়ে ইসলাম ফজল (জেইউআই-এফ) প্রধান মাওলানা ফজলুর রহমান সরকারের বিরুদ্ধে ধর্মকে পুঁজি করে রাজনীতি করতে পারবে না। পাকিস্তানের প্রভাবশালী গণমাধ্যম ডনের এক প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, প্রধানমন্ত্রীর জানা আছে- পিপিপি এবং পিএমএল-এন এমন ভান করছে যে তারা ইসলামাবাদ অচলাবস্থায় অংগ্রহণ করছে না, কিন্তু উভয় দল মাওলানা ফজলকে সমর্থন দিচ্ছে। এমনকি তারা তাকে তাদের সরকারবিরোধী কর্মসূচির জন্য অর্থ সরবরাহ করছে। প্রধানমন্ত্রী দুঃখ প্রকাশ করে বলেন, মাওলানা ফজল মাদ্রাসার নিষ্পাপ শিশুদের সরকারের বিরুদ্ধে ব্যবহার করছেন। কিন্তু তার বোঝা উচিত জাতিসংঘের সাধারণ অধিবেশনে কাশ্মীর ইস্যুতে পাকিস্তান সরকারের জয় হয়েছে। তিনি ধর্মকে পুঁজি করে সরকারের কোনো ক্ষতি করতে পারবেন না।

প্রভাবশালী ব্রিটিশ রাজনীতিবিদের তালিকায় টিউলিপ

ঢাকা অফিস ॥ লন্ডনভিত্তিক সংবাদপত্র ইভিনিং স্ট্যান্ডার্ডের করা ২০১৯ সালে ব্রিটেনের রাজধানীতে সবচেয়ে প্রভাবশালী রাজনীতিবিদের তালিকায় আছেন টিউলিপ সিদ্দিক। বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার ছোট বোন শেখ রেহানার মেয়ে টিউলিপ ব্রিটেনের লেবার পার্টি থেকে লন্ডনের হ্যাম্পস্টেড অ্যান্ড কিলবার্ন আসনের এমপি। প্রতি বছর লন্ডনে বিভিন্ন ক্ষেত্রে সবচেয়ে প্রভাব বিস্তারকারীদের নিয়ে প্রোগ্রেস ১০০০’ নামে এই তালিকা প্রকাশ করে ইভিনিং স্ট্যান্ডার্ড। রাজনীতি ছাড়াও ব্যবসা, প্রযুক্তি, বিজ্ঞান, ডিজাইন, সাহিত্য ও সংস্কৃতিসহ বিভিন্ন খাতের শীর্ষস্থানীয়রা উঠে আসেন এই তালিকায়। টিউলিপ সিদ্দিক এই তালিকায় স্থান পেয়েছেন ওয়েস্টমিনস্টার ক্যাটাগরিতে। তিনি ছাড়াও এই তালিকায় আছেন ব্রিটেনের প্রধানমন্ত্রী বরিস জনসন, ডাচি অফ ল্যানকাস্টারের চ্যান্সেলর মাইকেল গভ, স্বাস্থ্যমন্ত্রী ম্যাট হ্যানকক ও শিক্ষামন্ত্রী গেভিন উইলিয়ামসনের মতো লন্ডনের রাজনীতিকরা। টিউলিপকে নিয়ে সেখানে লেখা হয়েছে, যুক্তরাজ্যের পার্লামেন্টে সাবেক প্রধানমন্ত্রী টেরিজা মে’র ব্রেক্সিট চুক্তির বিপক্ষে ভোট দেওয়ার জন্য সন্তান জন্মদানের অস্ত্রোপচার পিছিয়ে বিশ্বব্যাপী সংবাদ শিরোনাম হয়েছিলেন হ্যাম্পস্টেড অ্যান্ড কিলবার্নের এমপি টিউলিপ সিদ্দিক। তখন পর্যন্ত যুক্তরাজ্যের পার্লামেন্টে সাধারণত কোনো এমপি’র সন্তান জন্ম দেওয়ার সময় আসন্ন হলে বা সদ্যোজাত সন্তানের কারণে বা অসুস্থতার কারণে কোনো ভোটে অংশ নিতে না পারলে বিরোধী পক্ষেরও একজন সদস্য ভোটদান থেকে বিরত থাকতেন, যাকে ‘পেয়ার’ বলা হত। কারও অনুপস্থিতি যেন ভোটের ফলে প্রভাব ফেলতে না পারে, তাই ওই প্রথা। কিন্তু ২০১৮ সালের জুলাইয়ে কনজারভেটিভ পার্টির প্রধান ব্রান্ডন লুইস ওই প্রথা লঙ্ঘন করে ভোট দিয়েছিলেন। যদিও লুইস পরে এজন্য দুঃখ প্রকাশ করে বলেছিলেন, ‘দুর্ঘটনাবশত’ ভোট দিয়ে ফেলেছিলেন তিনি। অতীতের এই ঘটনার কারণে ওই ব্যবস্থায় তার আর আস্থা নেই জানিয়ে সশরীরে পার্লামেন্টে গিয়ে ভোট দেওয়ার সিদ্ধান্ত নেন টিউলিপ। তার এই সাহসী সিদ্ধান্তের কারণে সন্তান প্রত্যাশী ও নবজাতকদের বাবা-মার জন্য ঐতিহাসিক ‘প্রক্সি ভোটিং’ পদ্ধতি চালু করতে বাধ্য হয় ব্রিটিশ সরকার। এই বিষয়টিকেই গুরুত্বপূর্ণ মনে করছে ইভিনিং স্ট্যান্ডার্ড। এছাড়া ২০১৫ সালের মে মাসে লন্ডনের এই আসন থেকেই এমপি হয়ে হাউজ অব কমন্সে গিয়ে প্রথম ভাষণেই নজর কাড়েন টিউলিপ সিদ্দিক। ওই ভাষণে শরণার্থী ও আশ্রয় প্রার্থীদের প্রতি ব্রিটেনের সহৃদয়তার ওপর আলোকপাত করেন টিউলিপ সিদ্দিক। বিবিসির তৈরি ব্রিটিশ পার্লামেন্টে সবচেয়ে স্মরণীয় নবনির্বাচিতদের ভাষণের তালিকায়ও স্থান পায় তার এই ভাষণ। নিজেকে ‘একজন আশ্রয় প্রার্থীর কন্যা’ হিসেবে বর্ণনা করে সে সময় মা শেখ রেহানার দুর্দশার বিবরণ দেন তিনি। ১৯৭৫ সালে পরিবারের অধিকাংশ সদস্যসহ জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান নিহত হওয়ার পর লন্ডনে রাজনৈতিক আশ্রয় খোঁজেন ছোট মেয়ে শেখ রেহানা।

বিশ্ব হার্ট দিবস উপলক্ষে বৈজ্ঞানিক সেমিনার ও আলোচনা সভা

বিশ্ব হার্ট দিবস-২০১৯ উপলক্ষে বাংলাদেশ হার্ট রিসার্চ এসোসিয়েশনের উদ্যোগে শুক্রবার সকালে রাজধানীর অপসোনিন ফার্মার অডিটোরিয়ামে এক বৈজ্ঞানিক সেমিনার ও ‘হৃদরোগ প্রতিকারের উপায়’ শীর্ষক আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়। সংগঠনের সভাপতি ও বিশিষ্ট হৃদরোগ বিশেষজ্ঞ অধ্যাপক ডাঃ এস আর খান (এফআরসিএস) এর সভাপতিত্বে এবং যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মতিউর রহমান লাল্টুর সঞ্চালনায় বৈজ্ঞানিক সেমিনারে প্রবন্ধ উপস্থাপন করেন বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিক্যাল বিশ্ববিদ্যালয়ের সাবেক চীফ কার্ডিয়াক সার্জন অধ্যাপক ডাঃ অসিত বরণ অধিকারী, ন্যাশনাল হার্ট ফাউন্ডেশনের শিশু হৃদরোগ বিভাগের প্রধান অধ্যাপক ডাঃ শরিফুজ্জামান, সিএমএইচএর ডাঃ বিগ্রেডিয়ার জেনারেল অধ্যাপক নুরুন্নাহার ফাতেমা, ন্যাশনাল হার্ট ইনষ্টিটিউট এর শিশু হৃদরোগ বিভাগের প্রধান প্রফেসর ডাঃ এবিএম আব্দুস সালাম, প্রফেসর ডাঃ নাসির উদ্দিন ও প্রফেসর ডাঃ সাহাবুদ্দিন খান। প্রধান অতিথির বক্তব্যে বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয় সমূহের এসোসিয়েশনের চেয়ারম্যান শেখ কবির হোসেন বলেন, বঙ্গবন্ধু কন্যা ও মাননীয়  প্রধানমন্ত্রী ১৬ কোটি মানুষ নিয়ে ভাবেন। তিনি একজন দায়িত্বশীল সরকার প্রধান। জনগণের মৌলিক মানবিক দিকগুলো সমাধানের জন্য তিনি আপ্রাণ চেষ্টা করেন। তিনি রাষ্ট্রের দায়িত্বে আছেন বলেই আমরা সকলেই নিরাপদে আছি। তার যোগ্যতা, সততা, আন্তরিকতা ও দেশপ্রেমের কোন ঘাটতি নেই। জনগণের ভাগ্য পরিবর্তনে তিনি রাজনীতি করছেন। দেশ আমাদের সকলের। আমরা নিজ নিজ দায়িত্ব সঠিকভাবে পালন করি তবে দেশ আরো এগিয়ে যাবে। বিশেষ অতিথির বক্তব্যে শেরে বাংলা কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য অধ্যাপক ডাঃ কামাল উদ্দিন আহমেদ বলেন, চিকিৎসাপ্রাপ্তী মানুষের অন্যতম মৌলিক অধিকার। আমাদের সংবিধানেও বিষয়টি উল্লেখ রয়েছে। সাধারণ মানুষ যাতে বিনা চিকিৎসায় মারা না যায় এটা দেখার দায়িত্ব রাষ্ট্রের। আমাদের দেশের মানুষ অধিকাংশয় গরীব ও স্বাস্থ্যসম্পর্কে অজ্ঞ থাকায় তারা সুচিকিৎসা থেকে বঞ্চিত। তিনি চিকিৎসকদের প্রশিক্ষণের উপর গুরুত্বারোপ করেন এবং স্বাস্থ্য শিক্ষা সম্পর্কিত বিষয়গুলি প্রাথমিক শিক্ষার সিলেবাসে অন্তর্ভূক্ত করার জোরদাবি জানান। বিশেষ অতিথির বক্তব্যে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিক্যাল বিশ্ববিদ্যালয়ের সাবেক উপাচার্য ডাঃ কামরুল হাসান খান বলেন, এ বছরের বিশ্ব হার্ট দিবসের স্লোগান ছিল আমার হার্ট, তোমার হার্ট, বিষয়বস্তু যৌক্তিক ও তাৎপর্যপূর্ণ ছিল। তিনি ব্যবস্থাপনা উন্নত করার জোরদাবি জানান। বিশেষ অতিথির বক্তব্যে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ফার্মেসী বিভাগের সাবেক ডীন অধ্যাপক আ ব ম ফারুক বলেন, বাংলাদেশের স্বাস্থ্যখাতের অভূতপূর্ব সাফল্য অর্জিত হয়েছে। আজ বিশ্বমানের চিকিৎসা সেবা বাংলাদেশেই দেওয়া সম্ভব হচ্ছে। তিনি বিশ্ব হার্ট দিবসের মূল স্লোগান আমরা নিজের হার্টের প্রতি জন্মশীল হবো, বন্ধু-বান্ধব আত্মীয়স্বজন, পাড়া প্রতিবেশীসহ সকলের হার্টের যতেœর প্রতি পরামর্শ দেব। অনুষ্ঠানে আরো বক্তব্য রাখেন, বাংলাদেশ হার্ট রিসার্চ এসোসিয়েশনের সাধারণ সম্পাদক প্রফেসর ডাঃ অসিতবরণ অধিকারী, প্রফেসর ডাঃ হাসিনা বানু (অবঃ), অধ্যাপক ডাঃ কাজী আবুল হাসান, অধ্যাপক ডাঃ নাসির উদ্দিন, অধ্যাপক ডাঃ শাহবুদ্দিন খানসহ সংগঠনের বিভিন্ন স্তরের নেতৃবৃন্দ, তরুণ চিকিৎসকবৃন্দসহ আমন্ত্রিত গণ্যমান্য ব্যক্তিগণ অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন। সভাপতির বক্তব্যে প্রফেসর ডাঃ এস আর খান বলেন, আজ থেকে ৪০ বছর আগে হৃদরোগের তেমন ভালো কোন চিকিৎসা পদ্ধতি এদেশে ছিলনা। মানুষ বিনা চিকিৎসায় ভুগে ভুগে মারা যেত। সেই দিন আজ নেই। বিজ্ঞানের উন্নতি ও চিকিৎসার ক্ষেত্রে ক্রমবর্ধমান সফলতা চিকিৎসা ক্ষেত্রে ব্যাপক পরিবর্তন এসেছে। জনগণ উন্নত ও মানসম্মত চিকিৎসা সেবা পাচ্ছে। আমরা সকলে যদি স্বাস্থ্য বিধি মেনে চলি, দৈনিন্দন সৃশৃঙ্খল জীবন-যাপন করি, পুষ্টিকর ও স্বাস্থ্যসম্মত খাবার গ্রহণ করি, নিয়মিত কায়িক পরিশ্রম ও ব্যায়ম করি, নিয়মিত ডাক্তারের পরামর্শ নেই এবং জনসচেতনতা তৈরী করি তাহলে আমরা সুস্থ্য জীবন-যাপন করতে পারবো এবং সুস্থ্য দেহের অধিকারী হবো। তিনি হৃদরোগ চিকিৎসা জটিল ও কঠিন হওয়ায় এবং ব্যয়বহুল ও দীর্ঘ মেয়াদী হওয়ায় তিনি এই রোগে প্রতিকারের চেয়ে প্রতিরোধই একমাত্র উপায় হিসেবে চিহ্নিত করেন। তিনি বিশ্ব হার্ট দিবসের সফলতা কামনা করেন। সংবাদ বিজ্ঞপ্তি

এমপি ছেলুন জোয়াদ্দারের আলমডাঙ্গা কলাকেন্দ্র পরিদর্শন

আলমডাঙ্গা অফিস ॥ আলমডাঙ্গার কলাকেন্দ্র পরিদর্শন করলেন চুয়াডাঙ্গা-১ আসনের এমপি সোলায়মান হক ছেলুন জোয়াদ্দার। গতকাল শনিবার সকাল ১০টায় উপজেলা প্রাঙ্গণে অবস্থিত কলা-কেন্দ্র পরিদর্শনের পূর্বে প্রতিষ্ঠানের কর্মকর্তা ও শিল্পিরা তাকে ফুল দিয়ে বরণ করেন। এমপি ছেলুন জোয়াদ্দার ওই প্রতিষ্ঠানের শিল্পিদের পরিবেশিত নৃত্য, আবৃতি ও গান উপভোগ করেন। তিনি বলেন,‘ আমাদের সমাজ থেকেক সাংস্কৃতিক বৈচিত্র হারিয়ে যাচ্ছে। ঝিমিয়ে পড়া সাংস্কৃতিকে জাগিয়ে তুলতে চায় সরকার। এর মাধ্যমে তরুণ ছেলে-মেয়েরা বিপথগামী হওয়ার হাত থেকে রক্ষা করে ভবিষ্যত প্রজন্মকে একটি নিরাপদ দেশ উপহার দেয়ার উদ্যোগ নেয়া হচ্ছে”। এ লক্ষ্যে দেশব্যাপী সাংস্কৃতিক কার্যক্রম প্রসারে সুযোগ-সুবিধা বাড়ছে।

আলমডাঙ্গার কলাকেন্দ্রের প্রতিষ্ঠাতা সভাপতি ইকবাল হোসেনের সভাপতিত্বের সম্পাদিকা রেবা রাণী সাহার পরিচালনায় অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন চুয়াডাঙ্গা জেলা আ.লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক মাসুদুজ্জামান লিটু বিশ^াস, উপজেলা পরিষদ ভাইস চেয়ারম্যান এ্যাড. সালমুন আহম্মদ ডন, সাবেক ভাইস চেয়ারম্যান দেলোয়ার হোসেন, পৌর আ.লীগের সম্পাদক সিরাজুল ইসলাম, থানার অফিসার্স ইনচার্জ আসাদুজ্জামান মুন্সি, আলমডাঙ্গা সরকারি কলেজ ছাত্রলীগের সভাপতি আশরাফুল ইসলাম, পৌর ছাত্রলীগের সভাপতি নয়ন সরকার, পিন্টু, সুরুজ, টগর, শাকিব প্রমূখ।

আলমডাঙ্গার বধ্যভূমি পরিদর্শন করলেন এমপি ছেলুন জোয়ার্দ্দার

আলমডাঙ্গা অফিস ॥ আলমডাঙ্গায় মুক্তিযোদ্ধাদের স্মৃতি বিজরিত বদ্ধভূমি পরিদর্শন করলেন চুয়াডাঙ্গা-১ আসনের এমপি সোলায়মান হক ছেলুন জোয়াদ্দার । গতকাল শনিবার দুপুর ১২টায় পৌর এলাকার লালব্রীজের নিকট বদ্ধভূমি পরিদর্শন শেষে নেতাকর্মীদের সাথে মতবিনিময় করেন। উপজেলা আওয়ামীলীগের সভাপতি পৌর মেয়র হাসান কাদীর গনুর সভাপতিত্বে বিশেষ অতিথি ছিলেন জেলা আওয়ামীলীগের সাংঠনিক সম্পাদক মাসুদুজ্জামান লিটু বিশ্বাস, উপজেলা আওয়ামীলীগের ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক ইয়াকুব আলী মাষ্টার, উপজেলার ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান এ্যাড. সালমুন আহম্মদ ডন, জেলা আওয়ামীলীগের সদস্য দেলোয়ার হোসেন পৌর আ.লীগের সভাপতি আবু মুছা, সম্পাদক সিরাজুল ইসলাম, উপজেলা আওয়ামীলীগের সহ-সভাপতি খন্দকার শাহ আলম মন্টু প্রমুখ।

খালেদা জিয়া আপস করে মুক্তি নেবেন না – গয়েশ্বর

ঢাকা অফিস ॥ বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য গয়েশ্বর চন্দ্র রায় বলেছেন, খালেদা জিয়া আপস করে মুক্তি নেবেন না। বিএনপি চেয়ারপারসনের মুক্তি দাবিতে গতকাল শনিবার জাতীয় প্রেস ক্লাবে শিশু কিশোর মেলা আয়োজিত আলোচনা সভায় তিনি খালেদা জিয়ার মুক্তির জন্য বিএনপির সংসদ সদস্যদের সাম্প্রতিক তৎপরতায় অসন্তোষও প্রকাশ করেছেন। দুর্নীতির দুই মামলায় দন্ড নিয়ে কারাবন্দি খালেদা জিয়াকে দেখে এসে বিএনপির সাত সংসদ সদস্য তার জামিনের জন্য প্রধানমন্ত্রীর হস্তক্ষেপ কামনা করেন। তারা এটাও বলেন যে মুক্তি পেলে খালেদা জিয়া বিদেশে যাবেন। ভোটের ফল প্রত্যাখ্যানের পর সংসদে যাওয়ার বিরোধিতাকারী গয়েশ্বর দলের ওই সংসদ সদস্যদের তৎপরতার প্রকাশ্য সমালোচনা করেন। তিনি বলেন, “আমরা অনেকে গুজবের দিকে ছুটছি। আবার অতি দায়িত্ব পালন করতে গিয়ে আমাদের কিছু কিছু নেতৃবৃন্দ ইতিমধ্যে ম্যাডামের সাথে হাসপাতালে দেখা করছেন। উনাদেরকে নিয়ে অনেকে অনেক কথা বলে। “উনারা যে খুব বেশি আন্তরিক ম্যাডামের মুক্তির জন্য, সেটা আমাদের সামনে এবং জনগণের সামনে আশ্বস্ত করার জন্য একটা জিনিস তারা ভালো করছেন। সেটা হল- ম্যাডামের যে আপসহী উপাধিটা আছে- এটা খারিজ করতে গিয়ে ধরা খাইছেন “ গয়েশ্বর বলেন, “আমি মনে করি গণতন্ত্রের নেত্রী বেগম খালেদা জিয়া আপসহীন। তাকে অনুকম্পা করতে পারে, এমন যোগ্যতা বাংলাদেশে কারও আছে বলে মনে হয় না।” কারা হেফাজতে বিএসএমএমইউতে চিকিৎসাধীন খালেদা জিয়ার শারীরিক অবস্থা দুর্বল হলেও তিনি মানসিকভাবে দৃঢ় রয়েছেন বলে মনে করেন গয়েশ্বর। “শারীরিকভাবে দুর্বল থাকলেও তিনি মানসিকভাবে সবল এবং তিনি মাথা নত করার ব্যক্তি নন। কারণ খালেদা জিয়ার একটি নাম আছে মা-বাবার দেওয়া ‘পুতুল’। এটি মাটির পুতুল নয় যে আছাড় দিলাম। এই পুতুল প্রতিবাদ করতে জানে, এই পুতুল কথা বলতে জানে। এই পুতুলের কথা বন্ধ করতে পারবে না।” দলীয় নেত্রীর মুক্তিতে আন্দোলনের উপরই জোর দিচ্ছেন বিএনপির স্থায়ী কমিটির এই সদস্য। তিনি বলেন, “আজকে পত্রিকায় ওবায়দুল কাদের বা অন্যান্যদের কথা দেখলাম; সেই কথাগুলোতে বোঝা যায়, আদালত কতটুকু নিয়ন্ত্রিত। প্রতিদিন কত মামলার রায় হয়, খালেদা জিয়ার মামলার রায় হয় না, বিব্রত বোধ করেন। “আমরা চেষ্টা করব, গণতন্ত্রের নেত্রীর মুক্তি আন্দোলন আমরা করব এবং করছি যতটুকুই করছি। আরও যতটুকু যৌক্তিক করা দরকার, সেটা করব। সেই আন্দোলনের মধ্য দিয়ে বেগম জিয়া মুক্তি লাভ করবেন।” ক্যাসিনো বন্ধে অভিযান ধরে গয়েশ্বর রায় বলেন, অপকর্ম ঢাকতে সরকার ‘বানর নাচের খেলা’ দেখাচ্ছে। তিনি বলেন, “আগে বায়তুল মোকাররমের আশে-পাশে বিভিন্ন মোড়ে মোড়ে দেখতাম বানর নাচায়। ওই বানরটা নাচায় লোক সমবেত করতে। তারপরে সব ভেজাল ওষুধ, এটা-সেটা বিক্রি করে। “বর্তমান সরকার এমন একটা বানর নাচানোর ব্যবস্থা করেছে, যাতে মানুষ সেদিকে আকৃষ্ট থাকে, আর উনারা যে অপকর্ম করছে সেই অপকর্ম যেন নির্দ্বিধায় করতে পারে। এর বাইরে আমার অন্য কিছু মনে হয় না।” দুর্নীতির বিরুদ্ধে সরকারের অভিযান নিয়ে প্রশ্ন তুলে গয়েশ্বর বলেন, “ছোট-খাটো দুই-একটা টোকাই-গল্প-ইতিহাস-নাটকের মতো সৃষ্টি করে কিছু সময়ের জন্য চমক সৃষ্টি করা যায়, কিন্তু প্রকৃত অর্থে দুর্নীতির হাত থেকে দেশকে রক্ষা করা যায় না এবং দেশ মুক্ত করা যায় না।” তিনি বলেন, “আজকের পত্রিকায় দেখলাম, ৭৬ হাজার কোটিপতি। ৫ বছর আগে না কি ১৯ হাজার ছিল, এখন ৭৬ হাজার কোটিপতি। “কার কল্যাণে হইছে? এই প্রধানমন্ত্রীর কল্যাণে। আর কত কোটি টাকা যে বিদেশে গেছে, তাদের যদি হিসাব হয়, তাহলে কোটিপতির সংখ্যা কত? এই কোটিপতিদের যদি তালিকা প্রকাশ করা হয়, দেখা যাবে আওয়ামী লীগ করে না এমন কোনো কোটিপতি হয় নাই।” আলোচনা সভায় বিএনপির যুগ্ম মহাসচিব সৈয়দ মোয়াজ্জেম হোসেন আলাল, ছড়াকার আবু সালেহ, জাতীয়তাবাদী সাংস্কৃতিক জোটের মহাসচিব রফিকুল ইসলাম, শিশু-কিশোর মেলার সভাপতি জাহাঙ্গীর শিকদার বক্তব্য রাখেন।

গত দশ বছরে দেশে শুধু লুট আর হরিলুট হয়েছে – মেনন

ঢাকা অফিস ॥ ওয়ার্কার্স পার্টির সভাপতি সাবেক মন্ত্রী রাশেদ খান মেনন এমপি বলেছেন, ‘গত দশ বছরে দেশের নিচেরতলা থেকে শুরু করে উপরতলা পর্যন্ত শুধু লুট, লুট আর হরিলুট হয়েছে। টিআরের গম লুট, রাস্তার ইট লুট, প্রকল্পের টাকা লুট, জিডিপির টাকা লুট, বড় বড় প্রকল্পে লুটপাট হয়েছে।’ তিনি গতকাল শনিবার বেলা ১১টায় শহীদ আলতাফ মাহমুদ অডিটরিয়ামে মুলাদী উপজেলা ওয়ার্কার্স পার্টির সম্মেলনে প্রধান অতিথির বক্তব্যে এ কথা বলেন। এ সময় তিনি আরও বলেন, ‘দেশে দুর্নীতির মুলোৎপাটনের জন্য ১৪দল গঠন করা হয়েছিলো। সেই দলের নেতৃত্ব দিচ্ছেন বঙ্গবন্ধু কন্যা প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। কিন্তু গত ১০ বছরে আমরা সেই লক্ষ্য অর্জন করতে পারিনি। আমরা দেশের উন্নয়নের জন্য অনেক বড় বড় প্রকল্প করেছি। সেই বড় বড় প্রকল্পে বড় বড় দুর্নীতি হয়েছে। বালিশ ক্রয়, বালিশের কভার, বালিশ নিচতলা থেকে কক্ষে ওঠাতে খরচের নামে দুর্নীতি হয়েছে।’ তিনি বলেন, ‘শুধুমাত্র কয়েকটি ক্যাসিনো-জুয়া বন্ধ করলেই হবে না। দেশের সকল পর্যায়ের অনিয়ম ও দুর্নীতি বন্ধ না করলে স্বাধীনতার লক্ষ্য, উদ্দেশ্য বাস্তবায়ন সম্ভব হবে না। এছাড়া দেশের উন্নয়নে নারীদের সম্পৃক্ত করতে হবে। ধর্ষণ, নারী নির্যাতন বন্ধ করে তাদের সামনে এগিয়ে যাওয়ার পথ করে দিতে হবে। যারা মাথার ঘাম পায়ে ফেলে কাজ করে তাদের সম্মান দিতে হবে। তাহলেই দেশ কাঙ্খিত লক্ষ্যে পৌছতে পারবে।’ সম্মেলনে সভাপতিত্ব করেন উপজেলা ওয়ার্কার্স পার্টির ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক এম. এ গফুর মোল্লা। প্রধান বক্তা ছিলেন বরিশাল জেলা ওয়ার্কার্স পার্টির সভাপতি অধ্যাপক নজরুল হক নীলু। বক্তব্য রাখেন বরিশাল জেলা ওয়ার্কার্স পার্টির সাধারণ সম্পাদক সাবেক এমপি অ্যাডভোকেট শেখ টিপু সুলতান, কোষাধ্যক্ষ মাজহারুল হক, কেন্দ্রীয় যুবমৈত্রীর সহ-সভাপতি সুজন আহমেদসহ উপজেলা ওয়ার্কার্স পার্টির নেতৃবৃন্দ।

দুর্নীতির সাথে আপোষ করা সম্ভব নয় – তথ্যমন্ত্রী

ঢাকা অফিস ॥ তথ্যমন্ত্রী ড. হাছান মাহমুদ বলেছেন, খালেদা জিয়ার মুক্তির বিষয়ে বিএনপির আবদার রাখতে গিয়ে রাষ্ট্রের পক্ষে দুর্নীতির সাথে আপোষ করা সম্ভব নয়। তিনি বলেন, ‘বিএনপির আবদার হচ্ছে রাষ্ট্র যেন দুর্নীতির সাথে আপোষ করে। এটি করা তো সম্ভবপর নয়। খালেদা জিয়ার মুক্তির বিষয়টি একেবারেই আদালতের এখতিয়ার। রাষ্ট্রপক্ষের জামিনের বিরোধীতা না করে তাদের আবদার পূরণের কোন সুযোগ নেই।’ চট্টগ্রাম নগরীর ফিনলে স্কয়ারে সিনেপ্লেক্স ‘সিলভার স্ক্রিন’ আয়োজিত বাংলাদেশের চলচ্চিত্র শিল্প এবং বিশ্বায়নের চ্যালেঞ্জ’ শীর্ষক সেমিনারে প্রধান অতিথি হিসেবে অংশগ্রহণ শেষে সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে তথ্যমন্ত্রী এসব কথা বলেন। তিনি বলেন, ‘দুর্নীতির মামলায় কেউ জামিন চাইলে রাষ্ট্রপক্ষের কাজ হচ্ছে জামিনের বিরোধীতা করা। জামিনের যদি বিরোধীতা করা না হয় তাহলে সেখানে তো দুর্নীতির সাথে রাষ্ট্রের আপোষ করা হয়। রাষ্ট্রের দায়িত্ব হচ্ছে, দুর্নীতির দায়ে একজন সাজাপ্রাপ্ত আসামি যখন জামিন চাইবেন, তখন তার বিরোধীতা করা। এটা রাষ্ট্রপক্ষের আইনজীবী বা দুদকের আইনজীবীর দায়িত্ব।’ কবি ও প্রাবন্ধিক আবুল মোমেনের সভাপতিত্বে ও কামরুল হাসান বাদলের সঞ্চালনায় সেমিনারে মূল প্রবন্ধ উপস্থাপন করেন দৈনিক সুপ্রভাত বাংলাদেশ সম্পাদক রুশো মাহমুদ। বিশেষ অতিথির বক্তব্য রাখেন ওয়াসিকা আয়েশা খাঁন এমপি, দৈনিক আজাদীর সম্পাদক এম এ মালেক, দৈনিক পূর্বকোণের সম্পাদক ডা. ম রমিজ উদ্দিন, আরটিভি’র সিইও সৈয়দ আশিক রহমান, চলচ্চিত্রও নির্মাতা অমিতাভ রেজা চৌধুরী ও দৈনিক প্রথম আলো চট্টগ্রাম অফিসের বার্তা সম্পাদক কবি ওমর কায়সার। ড. হাছান মাহমুদ বলেন, রাষ্ট্রপক্ষ জামিনের বিরোধীতা করলেও আদালত নানা বিবেচনায় যে কোন সিদ্ধান্ত দিতে পারে। সেটি হচ্ছে আদালতের এখতিয়ার। এখন বিএনপির নেতারা একেক সময় একেক কথা বলেন। তারা আসলে কী চায়? তারা খালেদা জিয়ার স্বাস্থ্য নিয়ে, কারাগারে থাকা নিয়ে রাজনীতি করতে চান নাকি খালেদা জিয়াকে সত্যিকার অর্থে আইনী প্রক্রিয়ায় মুক্ত করতে চান। তিনি বলেন, বিএনপি নেতারা একবার বলে আইনী প্রক্রিয়ার মাধ্যমে তাদের নেত্রীকে মুক্ত করা হবে, কোন করুণা তারা চায় না। আবার বলে রাষ্ট্রপক্ষ যেন বিরোধীতা না করে। আবার বলে আন্দোলনের মাধ্যমে খালেদা জিয়াকে মুক্ত করা হবে। তথ্যমন্ত্রী বলেন, খালেদা জিয়া দুর্নীতির দায়ে সাজা প্রাপ্ত একজন আসামি। এতিমের জন্য, এতিমখানা নির্মাণের জন্য যে টাকা এসেছিল। এতিমখানা নির্মাণ না করে তিনি সেই টাকা নিজের ব্যাংক হিসাবে সরিয়ে ফেলেছেন। সমস্ত সাক্ষ্য-প্রমাণের ভিত্তিতে, দলিল দস্তাবেজ, সওয়াল-জওয়াবের মাধ্যমে তার শাস্তি হয়েছে। এর আগে তথ্যমন্ত্রী ‘বাংলাদেশের চলচ্চিত্র শিল্প এবং বিশ্বায়নের চ্যালেঞ্জ’ শীর্ষক সেমিনারে বক্তব্য রাখেন। ওই অনুষ্ঠানে তথ্যমন্ত্রী বলেন, বোম্বেতে একটি স্ক্রিপ্টের জন্য লাখ টাকার বেশী নেয়া হয়। সেখানে বাংলাদেশে একটি চলচ্চিত্র বানানোর জন্য ৬০ লাখ টাকা অনুদান অনেক কম হয়ে যায়। এমনকি পশ্চিমবাংলাতেও অনেক টাকা নেয়। আমরা এখন ৫ কোটি টাকা করে দিই, এটা ১০ কোটি টাকায় নিয়ে যাওয়ার জন্য প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে আলোচনা হয়েছে। তিনি বলেন, দেশের যেসব সিনেমা হলগুলো বন্ধ হয়ে গেছে সেসব হলগুলো যদি কেউ আধুনিক সুযোগ-সুবিধাসহ চালু করতে চায় তাহলে তারা যেন দীর্ঘমেয়াদী ও সহজ শর্তে ব্যাংক ঋণ পায় সেজন্য আমি ইতিমধ্যে বাংলাদেশ ব্যাংকের গভর্নরের সাথে আলোচনা করেছি। এ বিষয়ে একটি সমাধানে পৌঁছাতে পারবো বলে আশা করছি। দেশের বিভিন্ন জায়গায় নতুন সিনেমা হল খোলার উদ্যোগও নেওয়া হচ্ছে জানিয়ে তথ্যমন্ত্রী বলেন, সরকারিভাবে দেশের প্রতিটি জেলায় ৩০০ আসন সম্বলিত তথ্যকেন্দ্র নির্মাণ করা হবে। প্রাথমিকভাবে আমরা ২৫ থেকে ৩০টি জেলায় একটি করে তথ্যকেন্দ্র করবো। চট্টগ্রামের মতো বড় জেলায় জমি পেলে দুটি তথ্যকেন্দ্র করা যায়।

বৃদ্ধাশ্রমে অপ্সরা সুহি

মানবতার কল্যাণ ফাউন্ডেশন কুষ্টিয়া জেলা শাখার পক্ষ থেকে  গতকাল উদয় মা ও শিশু পুনর্বাসন কেন্দ্রে বয়স্ক বৃদ্ধা মা’দের দেখতে যান অভিনেত্রী ও মানবতার কল্যাণ ফাউন্ডেশনের মহাসচিব কুষ্টিয়ার  মেয়ে অপ্সরা সুহি। এ সময় সুহি নিজের বাসা  থেকে তাদের জন্য খাবার নিয়ে যায় ও তাদের সঙ্গে দুপুরের খাবার খান ও তাদের সঙ্গে সুখ দুঃখের কথা বলেন। তাছাড়া গতকাল  ফাউন্ডেশনের কুষ্টিয়া জেলা শাখার একজন সদস্য উসাঈদ অর্ক-এর জন্মদিন উদযাপন করা হয়। ফাউন্ডেশনের প্রতিষ্ঠাতা চেয়ারম্যান জি.এম. সৈকত বলেন, বৃদ্ধাশ্রমটির উন্নয়নে সব ধরনের সহযোগিতা করবো। ফাউন্ডেশনের মহাসচিব অপ্সরা সুহি বলেন, দিনটি খুব ভালো কেটেছে এখানকার মায়েদের সাথে, তাদের সুখ দুঃখের অনেক কথা জানলাম ভবিষ্যতে এই বৃদ্ধাশ্রমটির পাশে থাকবো আমরা। এ সময় আরও উপস্থিত ছিলেন ফাউন্ডেশনের কুষ্টিয়া জেলা শাখার আহ্বায়ক ফয়সাল হক, যুগ্ম আহ্বায়ক সজিবুল ইসলাম, সদস্য অর্ক, সাকিব, হাবিবুর, মতিয়ার, মাহাদি, ওবায়দুলসহ কুষ্টিয়ার আরও নেতা কর্মীরা । সংবাদ বিজ্ঞপ্তি

ভেড়ামারায় গাঁজাসহ মাদক বিক্রেতা আটক

আল-মাহাদী ॥ গতকাল শনিবার সকালে ভেড়ামারা উপজেলার ধরমপুর ইউনিয়নের হাউখালি মাঠ এলাকা থেকে ১ কেজি গাঁজাসহ ১ মাদক বিক্রেতাকে আটক করেছে ভেড়ামারা থানা পুলিশ। গোপন সংবাদের ভিত্তিতে ভেড়ামারা থানার দায়িত্বপ্রাপ্ত অফিসার ইনচার্জ ওসি (তদন্ত) শেখ ওবায়দুল্লাহ’র নির্দেশে এসআই রুবেল ও কামরুজ্জামানের নেতৃত্বে সঙ্গীয়  ফোর্স সফল এই অভিযান করেন। আটক মাদক বিক্রেতা বিদ্যুৎ (৩০) পার্শ্ববর্তী দৌলতপুর উপজেলার জয়রামপুর গ্রামের চাঁন শেখ’র ছেলে। এ ব্যাপারে ভেড়ামারা থানায় মামলা দায়েরের প্রস্তুতি চলছে।

শীর্ষ সন্ত্রাসী জিসানকে দেশে আনার কার্যক্রম শুরু – আইজিপি

ঢাকা অফিস ॥ সংযুক্ত আরব আমিরাতের দুবাইতে গ্রেফতার হওয়া ঢাকার পলাতক শীর্ষ সন্ত্রাসী জিসানকে দ্রুত দেশে ফিরিয়ে আনার কার্যক্রম শুরু হয়েছে বলে জানিয়েছেন পুলিশের মহাপরিদর্শক (আইজিপি) ড. জাবেদ পাটোয়ারী। গতকাল শনিবার সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে একথা জানান আইজিপি। আইজিপি বলেন, দুবাইয়ে গ্রেফতার শীর্ষ সন্ত্রাসী জিসানকে দ্রুত দেশে ফিরিয়ে আনার প্রক্রিয়া শুরু হয়েছে। দুবাইয়ের সঙ্গে বাংলাদেশের বন্দী বিনিময় চুক্তি না থাকলেও কূটনৈতিক ও আইনি প্রক্রিয়ার মাধ্যমে তাকে আনা হবে। এর আগে গত বুধবার রাতে জিসানকে গ্রেফতার করা হয় বলে জানান পুলিশ সদর দফতরের এআইজি (ন্যাশনাল সেন্ট্রাল ব্যুরো) মহিউল ইসলাম। মহিউল ইসলাম বলেন, ইন্টারপোলের মাধ্যমে গ্রেফতার করা হয়েছে বলে দুবাই কর্তৃপক্ষ বাংলাদেশকে জানিয়েছে। এছাড়া দুবাই কর্তৃপক্ষ তাকে (জিসানকে) যথাযথ কর্তৃপক্ষের কাছে হস্তান্তরের প্রস্তুতি নিচ্ছে বলেও জানান তিনি। পুলিশ সদর দফতরের এআইজি (ন্যাশনাল সেন্ট্রাল ব্যুরো) মহিউল ইসলাম জানান, বুধবার রাতে ইন্টারপোলের মাধ্যমে জিসানকে গ্রেফতার করা হয় বলে দুবাই কর্তৃপক্ষ বাংলাদেশকে জানিয়েছে। এছাড়া দুবাই কর্তৃপক্ষ তাকে (জিসানকে) যথাযথ কর্তৃপক্ষের কাছে হস্তান্তরের প্রস্তুতি নিচ্ছে বলেও জানান এআইজি। উল্লেখ্য, স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয় ঘোষিত দেশের গত এক দশকের শীর্ষ ২৩ সন্ত্রাসীর একজন হলো জিসান। তাকে ধরিয়ে দেয়ার জন্য পুরস্কার ঘোষণা করা হয়েছিল। রাজধানীর গুলশান, বনানী, বাড্ডা, মতিঝিলসহ বেশ কিছু অঞ্চলে তার একচ্ছত্র আধিপত্য ছিল। ব্যবসায়ীদের কাছে চাঁদাবাজি ও টেন্ডারবাজি করতো সে। ইন্টারপোল তার নামে রেড অ্যালার্ট জারি করে রেখেছে। সংস্থাটির ওয়েবসাইটে জিসান সম্পর্কে বলা আছে, তার বিরুদ্ধে হত্যাকান্ড ঘটানো এবং বিস্ফোরক বহনের অভিযোগ আছে। ২০০৩ সালে মালিবাগের একটি হোটেলে দুজন ডিবি পুলিশকে হত্যার পর আলোচনায় আসে জিসান। এরপরেই গা ঢাকা দেয়। ২০০৫ সালে আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর অভিযানের মুখে সে দেশ ছাড়ে বলে ধারণা করা হয়। সূত্র জানায়, সেসময় পালিয়ে ভারতে প্রবেশ করে জিসান। এরপর নিজের নাম পরিবর্তন করে আলী আকবর চৌধুরী নামে পাসপোর্ট সংগ্রহ করে। সাম্প্রতিক দুর্নীতি বিরোধী অভিযানে দুই যুবলীগ নেতা জিকে শামীম ও খালেদ মাহমুদ ভূঁইয়াকে আটকের পর তার (জিসানের) নাম ফের নতুন করে আলোচনায় আসে। তাদের মধ্যে ঘনিষ্ঠ সম্পর্ক রয়েছে বলে জানা গেছে।

কুষ্টিয়ার বিভিন্ন উপজেলার মন্দির পরিদর্শন করেছেন জেলা পূজা উদ্যাপন পরিষদ নেতৃবৃন্দ

সুজন কর্মকার ॥ শারদীয় দুর্গোৎসব উপলক্ষ্যে, কুষ্টিয়ার মিরপুর, দৌলতপুর ও ভেড়ামার উপজেলার বিভিন্ন পূজা মন্দির পরিদর্শন করেছেন কুষ্টিয়া জেলা পূজা উদ্যাপন পরিষদ নেতৃবৃন্দ। কুষ্টিয়া জেলা পূজা উদ্যাপন পরিষদ’র সভাপতি নরেন্দ্রনাথ সাহা এবং সাধারণ সম্পাদক (ভারপ্রাপ্ত) এ্যাডঃ জয়দেব বিশ্বাস’র নেতৃত্বে ৫ অক্টোবর ২০১৯ তারিখ সকাল থেকে বিকেল পর্যন্ত নেতৃবৃন্দ  মিরপুর, দৌলতপুর ও ভেড়ামারা উপজেলার বিভিন্ন পূজা মন্দির পরিদর্শন করেন। এ সময় আরো উপস্থিত ছিলেন কুষ্টিয়া জেলা পূজা উদ্যাপন পরিষদ’র সহ-সভাপতি ও মিরপুর উপজেলার সভাপতি বিশ্বজিৎ বিশ্বাস, জেলা পূজা উদ্যাপন পরিষদ’র সহ-সভাপতি দুলাল দেবনাথ, কুষ্টিয়া জেলা পূজা উদ্যাপন পরিষদ’র কোষাধ্যক্ষ নন্দ কিশোর বিশ্বাস, সহ-আইন সম্পাদক এ্যাডঃ শীলা বসু (এ.জি.পি), জেলা পূজা উদ্যাপন পরিষদ’র সাধারণ সম্পাদক (ভারপ্রাপ্ত) এ্যাডঃ জয়দেব বিশ্বাস’র সহ-ধর্মিনী শীলা বিশ্বাস, জেলা পূজা উদ্যাপন পরিষদ’র নেতা তারাদাস ভৌমিক, গণেষ জোয়ার্দ্দার, মিরপুর উপজেলা পূজা উদ্যাপন পরিষদের সিনিয়র সহ-সভাপতি শক্তি সঞ্চয় পাল, সাধারণ সম্পাদক সুকেশ রঞ্জন পাল, কুষ্টিয়া জেলা পূজা উদ্যাপন পরিষদ’র প্রচার সম্পাদক ও কুষ্টিয়া প্রেসক্লাবের নির্বাহী সদস্য সাংবাদিক সুজন কুমার কর্মকার, জেলা পূজা উদ্যাপন পরিষদ’র সদস্য মিহির সিংহ রায় প্রমুখ নেতৃবৃন্দ। নেতৃবৃন্দ প্রথমে মিরপুর উপজেলার বিভিন্ন পূজা মন্দির পরিদর্শন করেন। এ সময় মিরপুর উপজেলার পৌর এলাকার প্রতিটি মন্দিরে সিসি ক্যামেরা থাকায় নেতৃবৃন্দ সন্তোষ প্রকাশ করেন। এর পর নেতৃবৃন্দ দৌলতপুর ও ভেড়ামারা উপজেলার বিভিন্ন পূজা মন্দির পরিদর্শন করেন। নেতৃবৃন্দ এ সময় বিভিন্ন মন্দির কমিটির নেতৃবৃন্দের সাথে সৌজন্য সাক্ষাত করেন এবং পরিদর্শন রেজিস্ট্রারে মন্তব্য প্রকাশ করেন।

দৌলতপুর সীমান্তে ফেনসিডিল উদ্ধার

দৌলতপুর প্রতিনিধি ॥ কুষ্টিয়ার দৌলতপুর সীমান্তে বিজিবি’র অভিযানে ফেনসিডিল উদ্ধার হয়েছে। গতকাল শনিবার বিকেল সোয়া ৫টার দিকে বিলগাথুয়া বিওপি’র টহল দল  দক্ষিণ বিলগাথুয়া এলাকায় অভিযান চালিয়ে সাড়ে ২৫ বোতল ফেনসিডিল উদ্ধার করেছে। তবে উদ্ধার হওয়া সব মাদকের সাথে জড়িত কেউ আটক হয়নি।

ইসলামিয়া কলেজের পক্ষ থেকে বীর মুক্তিযোদ্ধা রশিদুল আলমকে ফুল দিয়ে শুভেচ্ছা

নিজ সংবাদ ॥ বাংলাদেশ আওয়ামীলীগের উপদেষ্টা মন্ডলীর সদস্য, স্থানীয় ও জাতীয় নির্বাচনী মনোনয়ন বোর্ডের সদস্য এবং মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক উপকমিটির চেয়ারম্যান, সাবেক সচিব, যুদ্ধাহত বীর মুক্তিযোদ্ধা রশিদুল আলমকে কুষ্টিয়া ইসলামিয়া কলেজের পক্ষ থেকে ফুল দিয়ে শুভেচ্ছা জানানো হয়েছে। গতকাল শনিবার দুপুরে কুষ্টিয়া সার্কিট হাউজ প্রাঙ্গনে তিনি জেলার মুক্তিযোদ্ধা যাছাই বাছাই কার্যক্রম পরিচালনার জন্য কুষ্টিয়ায় আগমন করেন। এসময় কুষ্টিয়ার বৃহৎ শিক্ষা প্রতিষ্ঠান ইসলামীয়া কলেজের পক্ষ থেকে ফুল দিয়ে শুভেচ্ছা জানান কলেজের গভর্নিং বডির সভাপতি ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয়ের ডেপুটি রেজিষ্টার (আইন), রবীন্দ্র মৈত্রী বিশ্ববিদ্যালয়ের বোর্ড অব ট্রাষ্টি এর সদস্য সচিব ও সিন্ডিকেট সদস্য আলহাজ্ব শামসুর রহমান বাবু। এসময় উপস্থিত ছিলেন  জেলা মুক্তিযোদ্ধা বিষয়ক সম্পাদক মানিক কুমার ঘোষ, যুদ্ধাহত মুক্তিযোদ্ধা ইকবাল মাসুদ, সদর উপজেলা মুক্তিযোদ্ধার সাবেক কমান্ডার খন্দকার লিয়াকত আলী নীলা, সদর উপজেলার সাবেক সহকারী কমান্ডার সাইদুর রহমান, ইসলামীয়া কলেজের অধ্যক্ষ নওয়াব আলী, রসায়ন বিভাগের সহকারী অধ্যাপক সিরাজুল ইসলাম, কলেজ পরিচালনা পর্ষদের শিক্ষক প্রতিনিধি ও মার্কেটিং বিভাগের সহকারী অধ্যাপক হাবিবুল ইসলাম, কলেজের শিক্ষক পরিষদের সাধারন সম্পাদক ইংরেজী বিভাগের প্রভাষক রোমেনা ইয়াসমিন, গনিত বিভাগের সহকারী অধ্যাপক ও শিক্ষক সমিতির সহ-সভাপতি ওবাইদুল ইসলাম, ফিন্যান্স এন্ড ব্যাংকিং বিভাগের সহকারী অধ্যাপক আতাহার আলী, রাষ্ট্র বিজ্ঞান বিভাগের প্রভাষক সাদিয়া ফারজানা, মার্কেটিং বিভাগের প্রভাষক ও কলেজ শিক্ষক পরিষদের যুগ্ম সম্পাদক স্বপন আলী ও কম্পিউটার অপারেশন বিভাগের প্রভাষক শহিদুল ইসলাম। এসময় বীর মুক্তিযোদ্ধা রশিদুল আলম ইসলামীয় কলেজের শিক্ষকদের সাথে কুশলাদি ও মত বিনিময় করেন। তিনি সুবিধামত সময়ে ইসলামীয়া কলেজ পরিদর্শন করবেন বলে জানান।

কালুখালীর কালিকাপুর ইউপিতে বন্যাকবলিত পরিবারের মাঝে ত্রানের চাউল বিতরণ

কালুখালী প্রতিনিধি ॥ রাজবাড়ীর কালুখালী উপজেলার কালিকাপুর ইউপিতে বন্যাকবলিত ১০৭০জন পরিবারের মাঝে ত্রানের চাউল বিতরণ করা হয়েছে। গতকাল শনিবার বেলা ১২টায় ইউনিয়নের হরিণবাড়ীয়া বাজার থেকে এ চাউল বিতরণের উদ্বোধন করেন উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান আলিউজ্জামান চৌধুরী (টিটো)। এসময় উপজেলা নির্বাহী অফিসার কামরুন নাহার, কালিকাপুর ইউপি চেয়ারম্যান আতিউর রহমান নবাব, উপজেলা আওয়ামীলীগের যুুগ্ম সাধারণ সম্পাদক খায়রুল ইসলাম খায়ের, নির্মল কুমার সাহা, ট্যাগ অফিসার উপ-সহকারী কৃষি সম্প্রসারণ কর্মকর্তা সুজিত কুমার নন্দি, কালিকাপুর ইউনিয়ন আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক আকমল হোসেন বাচ্চু এছাড়াও ইউপি সচিব আব্দুল গফুর ও ইউপি সদস্য গোলাম মোস্তফা, মনোয়ার হোসেন ও সাবিনা ইয়াসমিনসহ অন্যান্যরা  উপস্থিত ছিলেন।

কুষ্টিয়া পৌর এলাকার কমরেড গারিস উল্ল্যাহ সড়কের রোড ও ড্রেনের নির্মাণ কাজের উদ্বোধন

নিজ সংবাদ ॥ কুষ্টিয়া শহরের পৌর এলাকার কমরেড গারিস উল্ল্যাহ সড়কের রোড ও ড্রেনের নির্মাণ কাজের শুভ উদ্বোধন করা হয়েছে। উদ্বোধন করেন কুষ্টিয়া পৌরসভার প্যানেল মেয়র মতিয়ার রহমান মজনু। ৪ অক্টোবর শুক্রবার সকাল ১০ টায় এ কাজের উদ্বোধনকালে ১২ নং ওয়ার্ড আওয়ামীলীগের সভাপতি মফিজুল ইসলাম, পৌর কাউন্সিলর আনিস কোরাইশী, ৯নং ওয়ার্ড আওয়ামীলীগের সভাপতি ঠিকাদার আক্তার হোসেন চাঁদু, কুষ্টিয়া চেম্বার অব কমার্সের সাবেক পরিচালক ঠিকাদার রাকিবুজ্জামান সেতু সহ স্থানীয় গন্যমান্য ব্যাক্তিবর্গ উপস্থিত ছিলেন। এ কাজের ঠিকাদার প্রতিষ্ঠান মেসার্স ওয়েসিস ট্রেডিং এজেন্সি।

কুষ্টিয়া চেম্বারের শিক্ষাবৃত্তি ও সম্মাননা প্রদান অনুষ্ঠানে মজিবর রহমান

অর্থাভাবে মেধাবী শিক্ষার্থীরা ঝরে পড়বে এটি হতে দেয়া হবেনা ঃ হাজী রবিউল ইসলাম

জিপিএ-৫’র পেছনে না ছুটে প্রকৃত শিক্ষায় শিক্ষিত হতে হবে

নিজ সংবাদ ॥ দেশবরেণ্য শিল্পপতি, বিআরবি গ্র“পের কর্ণধর আলহাজ¦ মজিবর রহমান বলেছেন জিপিএ-৫’র পেছনে না ছুটে প্রকৃত শিক্ষা অর্জন করতে হবে। যে শিক্ষা দেশ ও জাতির কল্যাণে কাজ হবে। আজকাল দেখেছি শিক্ষার্থীরা যে শিক্ষা অর্জন করছে তা প্রতিযোগিতায় টিকে থাকার মত নয়। কোন প্রতিষ্ঠানে চাকরির জন্য ইন্টারভিউ দিতে গেলে তাদের কাছ থেকে কাঙ্খিত মেধার প্রতিফলন পাওয়া যাচ্ছেনা। তাই সার্টিফিকেটের জন্য না ছুটে প্রকৃত জ্ঞান অর্জনের পেছনে ছুটতে হবে। তিনি গতকাল শনিবার দুপুরে চেম্বার ভবনের এমআরএস মিলনায়তনে চেম্বার অব কমার্স আয়োজিত মেধাবী শিক্ষার্থীদের শিক্ষাবৃত্তি ও সন্মাননা প্রদান অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি’র বক্তব্যে এসব কথা বলেন। কুষ্টিয়া চেম্বার অব কমার্সের সভাপতি ও কুষ্টিয়া জেলা পরিষদ’র চেয়ারম্যান হাজী রবিউল ইসলামের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি’র বক্তব্যে আলহাজ¦ মজিবর রহমান শিক্ষার্থীদের উদ্দেশ্যে আরো বলেন তোমরা পড়ালেখায় মনোনিবেশ করবে। পড়ালেখা ছাড়া তোমাদের এখন কোন কাজ নেই। অথচ দেখা যায় ছেলে মেয়েরা পড়ালেখা ছেড়ে বিপথগামী হচ্ছে। ঝুঁকে পড়ছে মাদকের মত ভয়াল নেশায়। এতে করে ওইসব ছেলে মেয়েরা ধংসের পাশাপাশি নি:শ^ হচ্ছে পরিবার। আবার ওইসব ছেলেমেয়েদের হাতে মোবাইল তুলে দিয়ে আরো অধ:পতনের মধ্যে ঠেলে দেয়া হচ্ছে। এবিষয়ে অভিভাবকদের সজাগ দৃষ্টি রাখতে হবে। সন্তানেরা কোথায় যাচ্ছে, কি করছে খেয়াল রাখতে হবে। পরিশেষে তিনি শিক্ষা বিস্তারে সব ধরনের সহায়তার আশ^াস দেন। সভাপতির বক্তব্যে চেম্বার সভাপতি হাজী রবিউল ইসলাম বলেন অর্থাভাবে মেধাবী শিক্ষার্থীরা ঝরে পড়বে এটি হতে পারেনা। তোমরা আমাদের সন্তানের মত। আমার কুষ্টিয়াতে কোন মেধাবী মুখ অর্থাভাবে লেখাপড়া করতে পারবেনা এটি মেনে নেয়া যায়না। জেলা পরিষদের পক্ষ থেকে শিক্ষার উন্নয়নে কাজ করার সুযোগ রয়েছে। আমার কাছে সেই দ্বার খোলা রয়েছে। হাজী রবিউল ইসলাম আরো বলেন কুষ্টিয়া চেম্বার অব কমার্স প্রতিবছরই অস্বচ্ছল ও মেধাবী শিক্ষার্থীদের শিক্ষাবৃত্তি দিয়ে থাকে। এবার তার ব্যত্যয় ঘটেনি। তবে এবার আবেদনের সংখ্যা বেশি থাকায় প্রায় দু’শ শিক্ষার্থীদের শিক্ষাবৃত্তি ও সম্মাননা দেয়া হলো। এই ধারাবাহিকতা অব্যাহত থাকবে বলেও তিনি জানান। চেম্বার সভাপতি হাজী রবিউল ইসলাম আরো বলেন তোমাদের জন্য যেমন আমাদের দ্বার খোলা রয়েছে, তোমাদেরও তেমনি দেশ ও জাতির কাছে দায়বদ্ধতা রয়েছে। প্রকৃত শিক্ষায় শিক্ষিত হয়ে সেই মেধাকে কাজে লাগাতে হবে দেশ ও জাতির কল্যাণেই। তবেই আমাদের উদ্দেশ্য সফলকাম হবে। অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি’র বক্তব্য রাখেন কুষ্টিয়া জেলা শিক্ষা অফিসার জায়েদুর রহমান। শিক্ষাবৃত্তি কমিটির আহ্বায়ক ওমর ফারুকের সঞ্চালনায় উপস্থিত ছিলেন কুষ্টিয়া চেম্বার অব কমার্সের সাবেক সভাপতি নাসির উদ্দিন মৃধা, আশরাফুদ্দিন নজু, চেম্বারের সহ-সভাপতি এসএম কাদেরী শাকিল, শিক্ষাবৃত্তি কমিটির সদস্য প্রকৌশলী সাইফুল আলম, মোকারম হোসেন মোয়াজ্জেম, মুক্তারুজ্জামান চৌধুরী মুরাদ, কাজী রফিকুর রহমান, শহীদ মুসা মঞ্জু ছাড়াও চেম্বারের সকল পরিচালক, বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের শিক্ষক, অভিভাবক ও শিক্ষার্থীবৃন্দ। অনুষ্ঠান শেষে এসএসসি ও সমমান পরীক্ষায় জিপিএ-৫ প্রাপ্ত প্রায় দুই শতাধিক অস্বচ্ছল শিক্ষার্থীদের হাতে প্রায় ১০লাখ টাকার শিক্ষাবৃত্তি ও সম্মাননা প্রদান করা হয়।

বন্যার্তদের পাশে দাঁড়ালেন আনসার-ভিডিপি

নিজ সংবাদ ॥ কুষ্টিয়ার দৌলতপুর উপজেলার চিলমারি ইউনিয়নে বন্যাকবলিত এলাকায় বন্যার্তদের সাহায্যের হাত বাড়িয়ে দিয়ে পাশে দাঁড়ালেন কুষ্টিয়া জেলা আনসার-ভিডিপি কর্মকর্তারা। মানব সেবায় ব্রত হয়ে নিজেদের বেতন ভাতা থেকে ব্যক্তিগতভাবে এই উদ্দ্যোগ গ্রহন করেন তারা। গতকাল শনিবার সকালে চিলমারি ইউনিয়নের কাজীপাড়া গ্রামে আনসার-ভিডিপি’র চিলমারি ইউনিয়ন দলনেতা আমিনুল ইসলামের বাড়িতে পানিবন্দী ও বন্যায় ক্ষতিগ্রস্থ বন্যার্তদের মাঝে ত্রাণ বিতরন করা হয়। মানুষ মানুষের জন্য। সামান্য উদ্যোগ হলেও মানুষের সেবায় প্রাকৃতিক দূর্যোগ মোকাবেলায় আনসার-ভিডিপি ছুটে গেছেন বন্যার্তদের কাছে। জেলা আনসার ও ভিডিপি কর্মকর্তা তরফদার আলমগীর হোসেন বন্যাকবলিত এলাকা পরদির্শনকালে চিলমারী ইউনিয়নের বন্যাদূর্গত ৭০টি আনসার-ভিডিপি পরিবারের মাঝে নগদ টাকা সহ জরুরী খাদ্য চাল, ডাল, চিড়া আলু চিনি তেল সহ বিভিন্ন সামগ্রীর ত্রাণ বিতরণ করেন। ত্রাণ বিতরণকালে জেলা আনসার ও ভিডিপি কর্মকর্তা তরফদার আলমগীর হোসেন বলেন, বন্যা সহ দেশের যে কোন প্রাকৃতিক দূর্যোগ মোকাবেলায় বাংলাদেশ আনসার-ভিডিপি’র সদস্যরা দূর্গতদের সার্বিক সহযোগিতায় পাশে দাঁড়িয়েছেন এবং আগামীতেও থাকবেন। বন্যাকবলিত অসহায় মানুষের পাশে থেকে আমাদের এসকল অকুতভয় আনসার-ভিডিপির সদস্য সদস্যাবৃন্দ কাজ করছেন নিজ নিজ এলাকায়। দেশের যে কোন নির্বাচনে দায়িত্ব পালন সহ রাষ্ট্রের গুরুত্বপূর্ন কাজে জীবনের ঝুঁকি নিয়ে নিয়োজিত থেকেছেন। আজ তারা বন্যাকবলিত এলাকায় মানবেতর জীবন যাপন করছে জেনে বাংলাদেশ আনসার-ভিডিপি বসে থাকতে পারেনা। তাদের এই অবস্থা থেকে পরিত্রাণ করতে সামান্য হলেও আনসার-ভিডিপি পাশে আছে এবং আগামীতেও থাকবে। মনে রাখবেন প্রাকৃতিক দূর্যোগ  মোকাবেলায় বর্তমান সরকার অত্যন্ত আন্তরিক। ত্রাণ বিতরনকালে কুষ্টিয়া সদর উপজেলা আনসার ভিডিপি কমান্ডার তামান্না ইয়াসমিন, দৌলতপুর উপজেলা আনসার ভিডিপি কমান্ডার খালেদা বেগম, ব্যাটালিয়ান আনসার সহ ইউনিয়ন আনসার-ভিডিপি সদস্য/সদস্যাবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন।

একটি কুচক্রীমহল এই অভিযানে খুশি নন – ওবায়দুল কাদের

ঢাকা অফিস ॥ দুর্নীতির চক্র ভেঙে দিতেই সারা দেশে শুদ্ধি অভিযান চলছে বলে মন্তব্য করেছেন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক এবং সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের। তিনি বলেন, সারা দেশে যে শুদ্ধি অভিযান চলছে তা কোনো দল বা গোষ্ঠীর মধ্যে নয়। বাংলাদেশ থেকে দুর্নীতির চক্র ভেঙে দিতেই এ অভিযান। প্রধানমন্ত্রী দুর্নীতি-দুর্বৃত্তায়ন এবং মাদক-সন্ত্রাসের বিরুদ্ধে অভিযান শুরু করেছেন। এই অভিযান অব্যাহত থাকবে। এ অভিযান দেশের শান্তির জন্য। গতকাল শনিবার দুপুরে রাজধানীর ঢাকেশ্বরী জাতীয় মন্দিরে দুস্থদের মধ্যে বস্ত্র বিতরণ শেষে তিনি এসব কথা বলেন। বাংলাদেশ পূজা উদযাপন পরিষদ এবং মহানগর সার্বজনীন পূজা কমিটির উদ্যোগে এই বস্ত্র বিতরণ কার্যক্রমের আয়োজন করা হয়। অনুষ্ঠানে ওবায়দুল কাদের বলেন, একটি কুচক্রীমহল এই অভিযানে খুশি নন। তারা দেশের মানুষের শান্তি চায় না। এরা সবার শত্রু, ওরা হিন্দুদের সম্পদের দিকে তাকায়। দখল করতে চায়। এই মহলের বিষয়ে আমাদের সতর্ক থাকতে হবে। যত বড় প্রভাবশালী হোক যারা সরকারের ভাবমূর্তি নষ্ট করে দিতে চায় তারা কেউই ছাড় পাবে না- এমন হুশিয়ারি উচ্চারণ করে সেতুমন্ত্রী বলেন, দুর্নীতিবাজদের বিরুদ্ধে অভিযানের পাশাপাশি যারা অনুপ্রবেশকারী তাদের প্রতি দলের সভাপতির নির্দেশ রয়েছে। তৃণমূলের কমিটি গঠনে বিতর্কিতদের স্থান না দেয়ার নির্দেশনা আছে। তিনি বলেন, এ অভিযান দলে অনুপ্রবেশকারী, স্বাধীনতাবিরোধী, অপকর্মকারী, চাঁদাবাজ ও টেন্ডারবাজদের বিরুদ্ধে। যারা ‘মাইনোরিটির’ সম্পদ দখল করতে চায়, তাদের বিরুদ্ধে এ অভিযান। ভারতের সঙ্গে বাংলাদেশের সু-সম্পর্ক রয়েছে উল্লেখ করে ওবায়দুল কাদের বলেন, ভারত সরকারের সঙ্গে বাংলাদেশের সুসম্পর্ক রয়েছে। আমরা এক সঙ্গে সাম্প্রদায়িক শক্তির বিরুদ্ধে কাজ করব। হিন্দু সম্প্রদায়ের উদ্দেশে তিনি বলেন, শেখ হাসিনা ক্ষমতায় থাকলে হিন্দু সম্প্রদায় তাদের ধর্মীয় কর্মকা-, বিশেষ করে পূজা উৎসব শান্তিপূর্ণ পরিবেশে পালন করতে পারেন। পূজা উৎসবকে ঘিরে সারা দেশে নিরাপত্তা ব্যবস্থা জোরদার করা হয়েছে জানিয়ে সেতুমন্ত্রী বলেন, শেখ হাসিনা ক্ষমতায় থাকলে আপনারা মাথা উঁচু করে চলবেন। আপনাদের কোনো ভয় নেই। আপনারাও এদেশের প্রথম শ্রেণির নাগরিক। মুসলমানদের চেয়ে আপনাদের মর্যাদা কম নয়। আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী আপনাদের পাশে রয়েছে। পূজা উদযাপনে কোনো অপশক্তি যেন বাধা সৃষ্টি করতে না পারে সেদিকেও আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর দৃষ্টি রাখতে হবে। এ সময় অন্যদের মধ্যে আরও উপস্থিত ছিলেন আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক আ ফ ম বাহাউদ্দিন নাছিম, আওয়ামী লীগের উপ-দফতর সম্পাদক ও প্রধানমন্ত্রীর বিশেষ সহকারী ব্যারিস্টার বিপ্লব বড়ুয়া, স্থানীয় সংসদ সদস্য হাজী সেলিম, ঢাকা মহানগর দক্ষিণ আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক শাহে আলম মুরাদ, স্থানীয় ওয়ার্ড কাউন্সিলর হাসিবুর রহমান মানিক, বাংলাদেশ পূজা উদযাপন পরিষদের সভাপতি মিলন কান্তী দত্ত ও সাধারণ সম্পাদক নির্মল কুমার চ্যাটার্জী, মহানগর সার্বজনীন পূজা কমিটির সভাপতি শৈলেন্দ্র নাথ মজুমদার ও সাধারণ সম্পাদক অ্যাডভোকেট কিশোররঞ্জন মন্ডল প্রমুখ।

ভারত-বাংলাদেশ সম্পর্ক ‘আরো উচ্চতায়’ নিয়ে যাওয়ার অঙ্গীকার জয়শঙ্করের

ঢাকা অফিস ॥ বাংলাদেশের সঙ্গে সম্পর্ককে ‘আরো উচ্চতায়’ নিয়ে যাওয়ার অঙ্গীকার পুনর্ব্যক্ত করেছে ভারত। গতকাল শনিবার নয়া দিল্লিতে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সঙ্গে সাক্ষাৎ করে ভারতের পররাষ্ট্রমন্ত্রী এই অঙ্গীকার পূনর্ব্যক্ত করেন। বৈঠকের পর ভারতের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের মুখপাত্র রবীশ কুমার এক টুইট বার্তায় বলেন, ‘জয়শঙ্কর বাংলাদেশের সঙ্গে ভারতের সম্পর্কের বিষয় সর্বোচ্চ অগ্রাধিকারের কথা পূনর্ব্যক্ত করেছেন।’ জয়শঙ্করের বক্তব্য উদ্ধৃত করে রবীশ কুমার বলেন, বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সঙ্গে ভারতের পররাষ্ট্রমন্ত্রীর অত্যন্ত আন্তরিক আলোচনা হয়েছে। বৈঠককালে বাংলাদেশের পররাষ্ট্রমন্ত্রী ড. এ কে আবদুল মোমেন, প্রধানমন্ত্রীর পররাষ্ট্র বিষয়ক উপদেষ্টা ড. গওহর রিজভী, পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী শাহরিয়ার আলম এবং ভারতে বাংলাদেশের হাইকমিশনার সৈয়দ মোয়াজ্জেম আলী উপস্থিত ছিলেন। ভারতের পররাষ্ট্রমন্ত্রীর সঙ্গে ছিলেন বাংলাদেশে ভারতের হাইকমিশনার রিভা গাঙ্গুলি।

বর্ণাঢ্য আয়োজনে দৈনিক দিনের খবর পত্রিকার প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী উদযাপন

নিজ সংবাদ ॥ বর্ণাঢ্য আয়োজনের মধ্য দিয়ে কুষ্টিয়া থেকে প্রকাশিত দৈনিক দিনের খবর পত্রিকার ৯ম বর্ষ পেরিয়ে ১০ম বর্ষে পদার্পন উপলক্ষ্যে দিনের খবর পরিচালনা পর্ষদের উদ্যোগে আলোচনা সভা ও সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়। গত শুক্রবার দৈনিক দিনের খবর কার্যালয় প্রাঙ্গনে দিনব্যাপী উৎসবমূখর পরিবেশে এই অনুষ্ঠান এক মিলন মেলায় পরিনত হয়। দৈনিক দিনের খবর পত্রিকার সম্পাদক ও প্রকাশক ফেরদৌস রিয়াজ জিল্লুর সভাপতিত্বে সকাল ১১টায় শুরু হয় আলোচনা সভা। আলোচনা সভায় বক্তব্য রাখেন বিশিষ্ট ব্যবসায়ী ও দি কুষ্টিয়া চেম্বার অব কমার্স এন্ড ইন্ডা: এর সাবেক সহ-সভাপতি ও  দৈনিক দিনের খবর পত্রিকার উপদেষ্ঠা এস এম কাদেরী শাকিল, দৈনিক দিনের খবর পত্রিকার উপদেষ্ঠা ও বীরমুক্তিযোদ্ধা রইচ উজ্জামান মিঞা, কুষ্টিয়া প্রেসক্লাবের সাধারণ সম্পাদক ও দৈনিক আন্দোলনের বাজার পত্রিকার সম্পাদক আনিসুজ্জামান ডাবলু, কুষ্টিয়া  প্রেসক্লাবের সাবেক সাধারণ সম্পাদক ও দৈনিক জয়যাত্রা পত্রিকার সম্পাদক আল মামুন সাগর, কুষ্টিয়া এডিটরস ফোরামের সভাপতি ও দৈনিক কুষ্টিয়া দর্পণ পত্রিকার সম্পাদক মুজিবুল শেখ, কুষ্টিয়া এডিটরস ফোরামের সাধারণ সম্পাদক, দৈনিক কুষ্টিয়ার কাগজের সম্পাদক ও এসটিভির কুষ্টিয়া প্রতিনিধি নূর আলম দুলাল, টেলিভিশন জার্নালিষ্ট এ্যাসেসিয়েশনের সভাপতি ও বাংলাভিশনের কুষ্টিয়া প্রতিনিধি হাসান আলী, টেলিভিশন জার্নালিষ্ট এ্যাসেসিয়েশনের সাধারণ সম্পাদক ও সময় টিভির জেলা প্রতিনিধি এস এম রাশেদ, দৈনিক মাটির ডাক পত্রিকার সম্পাদক ও কুষ্টিয়া প্রেসক্লাবের সহ-সভাপতি লুৎফর রহমান কুমার, মাইটিভির জেলা প্রতিনিধি আব্দুর রাজ্জাক বাচ্চু, দৈনিক মাটির  পৃথিবীর সম্পাদক ও কুষ্টিয়া প্রেসক্লাবের নির্বাহী সদস্য এম. এ জিহাদ, দৈনিক সময়ের কাগজ পত্রিকার ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক ও কুষ্টিয়া প্রেসক্লাবের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক নরুন্নবী বাবু, চ্যানেল টোয়েন্টিফোরের স্টাফ রিপোর্টার ও কুষ্টিয়া  প্রেসক্লাবের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক শরীফ বিশ^াস, ডিবিসি চ্যানেল ও দেনিক সমকালের কুষ্টিয়া প্রতিনিধি সাজ্জাদ রানা, দৈনিক প্রথম আলোর কুষ্টিয়া প্রতিনিধি তৌহিদী হাসান, দৈনিক যুগান্তর পত্রিকার কুষ্টিয়া প্রতিনিধি ও কুষ্টিয়া প্রেসক্লাবের কোষাধ্যক্ষ জুবায়েদ রিপন, এশিয়ান টিভির কুষ্টিয়া প্রতিনিধি ও দৈনিক সত্যখবর পত্রিকার সম্পাদক হাসিবুর রহমান রিজু, যমুনা টেলিভিশনের কুষ্টিয়া প্রতিনিধি মাহাতাব উদ্দিন লালন, দেনিক আজকের সূত্রপাত পত্রিকার সম্পাদক আক্তার হোসেন ফিরোজ,  দৈনিক দিনের খবর পত্রিকার পরিচালনা পর্ষদের চেয়ারম্যান সাব্বির মোহাম্মদ কাদেরী সবু ও দৈনিক দিনের খবর পত্রিকার পরিচালনা পর্ষদের সদস্য সচিব আহসানুল হক আদলু। এছাড়াও অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন, দৈনিক নয়াদিগন্ত পত্রিকার কুষ্টিয়া প্রতিনিধি নুরুল কাদের, কুষ্টিয়া প্রেসক্লাবের নির্বাহী সদস্য গোলাম মওলা, ভেড়ামারা প্রেসক্লাবের আহবায়ক রেজাউল ইসলাম, ভোরের কাগজ ভেড়ামারা উপজেলা প্রতিনিধি ইসমাইল হোসেন বাবু, মোহনা টিভির কুষ্টিয়া প্রতিনিধি এস এম আকরাম, দৈনিক মানবজমিন পত্রিকার কুষ্টিয়া প্রতিনিধি দেলোয়ার হোসেন মানিক, দৈনিক আলোকিত বাংলাদেশ পত্রিকার কুষ্টিয়া প্রতিনিধি আরিফ মেহমুদ, বাংলা টিভির কুষ্টিয়া জেলা প্রতিনিধি ও কুষ্টিয়া প্রেসক্লাবের দপ্তর সম্পাদক এম লিটন উজ জামান, দৈনিক দিনের খবর পত্রিকার ঝিনাইদহ প্রতিনিধি এইচ এম ইমরান হোসেন, দৈনিক দিনের খবর পত্রিকার ভেড়ামারা প্রতিনিধি আজিজুল হাকিম, কুষ্টিয়ার কাগজের ভেড়ামারা প্রতিনিধি অলিউল ইসলাম অলি প্রমুখ। আলোচনা সভায় বিশিষ্ট ব্যবসায়ী ও দি কুষ্টিয়া চেম্বার অব কমার্স এন্ড ইন্ডা: এর সাবেক সহ-সভাপতি এস এম কাদেরী শাকিল বলেন, সংবাদপত্র সমাজের দর্পণ। সমাজের নানা অসঙ্গতি তুলে  ধরতে সংবাদপত্র গুরুত্বপূর্ন ভূমিকা পালন করে। আমরা অনেকেই অনেক বিষয় হয়তো নজরে আনতে পারিনা সংবাদপত্রের মাধ্যমে প্রত্যন্ত এলাকার মানুষের খোঁজখবর, তাদের প্রত্যাশা, তাদের চাহিদার বিষয়গুলো আমরা জানতে পারি। এতে করে তাদের দোড়গোড়াই সেবা পৌছে দেওয়া সম্ভব। বর্তমান সরকার মিডিয়াবান্ধব সরকার। এই সরকারের সময়ে সকল গণমাধ্যম তাদের স্বাধীনতা নিয়ে কাজ করছে। বর্তমান সময়ে আমরা অনেক আলোচিত বিষয়গুলো মিডিয়ার মাধ্যমে জানতে পারছি ফলে সরকারের সিধান্ত নেওয়ার ক্ষেত্রে অগ্রনী ভূমিকা পালন করছে। আমি বিশ^াস করি, দৈনিক দিনের খবর পত্রিকাটি আরো সুন্দরভাবে, সফলভাবে এগিয়ে যাবে অবহেলিত মানুষের কল্যানে  কাজ করবে, আমি পত্রিকাটির সর্বাঙ্গীন সাফল্য কামনা করছি। কুষ্টিয়া প্রেসক্লাবের সাধারণ সম্পাদক ও দৈনিক আন্দোলনের বাজার পত্রিকার সম্পাদক আনিসুজ্জামান ডাবলু তার বক্তব্যে বলেন, কুষ্টিয়া থেকে প্রকাশিত দৈনিক দিনের খবর পত্রিকাটি অত্যন্ত সুনামের সাথে বৃহৎ পরিসরে প্রকাশিত হয়ে আসছে। পত্রিকাটি আরো সামনের দিকে এগিয়ে যাক, আমি পত্রিকাটির সাফল্য কামনা করছি। বিশেষ অতিথির বক্তব্যে কুষ্টিয়া এডিটরস ফোরামের সভাপতি ও দৈনিক কুষ্টিয়া দর্পণ পত্রিকার সম্পাদক মুজিবুল শেখ বলেন, দৈনিক দিনের খবর পত্রিকাটি সব সময় ন্যায়ের পক্ষে কথা বলে। অনেক ঘাত প্রতিঘাত পেরিয়ে পত্রিকাটি ১০ম বর্ষে পদার্পন করলো। পত্রিকাটি পাঠকের চাহিদা পূরন করে আরো সামনের দিকে এগিয়ে যাক এই কামনা করছি। সবশেষে পত্রিকাটির সম্পাদক ও প্রকাশক ফেরদৌস রিয়াজ জিল্লু তার সমাপনী বক্তব্যে বলেন, “সত্য প্রকাশে নির্ভীক” এই স্লোগানকে সামনে রেখে দিনের খবর পত্রিকাটি পাঠকের প্রতিদিনের সংবাদের চাহিদা পূরন করছে। আমরা সব সময় পাঠকের চাওয়া, তাদের প্রত্যাশাকে প্রাধান্য দিয়ে যাচ্ছি। তাদের অনুপ্রেরনা পরামর্শ আমাদের কাছে অতি মূল্যবান। এছাড়াও বিজ্ঞাপনদাতা, পত্রিকার সাথে নিযুক্ত সকল কলাকসুলীর ঐক্লান্তিক পরিশ্রমে আমরা আজ এই জায়গাতে পৌছেছি। আমরা আরো সামনে যেতে চাই। দৈনিক দিনের খবর আপনাদের সংবাদের চাহিদা পূরন করবে এবং পত্রিকাটি আপনাদের হাতে পৌছাতে আমি সকলের কাছে সার্বিক সহযোগিতা কামনা করছি। দিনব্যাপী অনুষ্ঠানে সকাল ১০টা থেকে দুপুর ১টা পর্যন্ত আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়। জুম্মার নামাজ শেষে দুপুরে প্রীতিভোজের আয়োজন করেন দৈনিক দিনের খবর পরিচালনা পর্ষদ। প্রীতিভোজ শেষে বিকেলে আমন্ত্রিত অতিথিদের অংশগ্রহনে বেশ কয়েকটি খেলার আয়োজন করা হয়। এতে সকল বয়সী নারী, শিশুরা অংশগ্রহন করে। সন্ধ্যা ৭টার পর এক মনোজ্ঞ সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়। সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানে সংগীত পরিবেশন করেন কুষ্টিয়া লালন একাডেমীর শিল্পীরা। এছাড়াও সংগীত পরিবেশন করেন আমন্ত্রিত অতিথিরাও। রাত ১০টায় অনুষ্ঠানের আনুষ্ঠানিক সমাপ্তি ঘোষনা করেন দৈনিক খবর পত্রিকার সম্পাদক ও প্রকাশক ফেরদৌস রিয়াজ জিল্লু।