দৌলতপুরে জ¦রে শিশুর মৃত্যু

দৌলতপুর প্রতিনিধি ॥ কুষ্টিয়ার দৌলতপুরে জ¦রে অনু (৬) নামে এক শিশুর মৃত্যু হয়েছে। গতকাল বৃহস্পতিবার সকাল ১০টার দিকে কুষ্টিয়া হাসপাতালে নেওয়ার পথে মিরপুর এলাকায় তার মৃত্যু হয়। নিহত শিশু অনু উপজেলার বোয়ালিয়া ইউনিয়নের নাটনাপাড়া গ্রামের শাহীন আলীর মেয়ে। স্থানীয়রা জানায়, জ¦রে আক্রান্ত হয়ে প্রায় এক সপ্তাহ ধরে স্থানীয়ভাবে জ¦রের চিকিৎসা চলছিল তার। অবস্থার অবনতি হওয়ায় অনুকে গতকাল সকালে কুষ্টিয়া হাসপাতালে নেওয়ার পথে সে মারা যায়। এলাকাবাসীর ধারণা ডেঙ্গুতে আক্রান্ত হয়ে শিশুটি মারা গিয়ে থাকতে পারে।

শৈলকুপায় বিষাক্ত সাপের ছোবলে আবারো বিনা চিকিৎসায় শিশুর মৃত্যু

শৈলকুপা প্রতিনিধি ॥  ঝিনাইদহের শৈলকুপায় আবারো বিষাক্ত সাপের ছোবলে শিশুর মৃত্যু হয়েছে। গতকাল বৃহস্পতিবার দুপুরে উপজেলার বগদিয়া গ্রামে এ ঘটনা ঘটে। নিহত শিশু হাসান উদ্দিন (৯) ঐ গ্রামের দবির উদ্দিনের ছেলে। জানা যায়, বুধবার গভীর রাতে বগদিয়া গ্রামে নিজ ঘরে শিশু হাসান ঘুমিয়ে ছিলো। ঘুমন্ত অবস্থায় তাকে বিষাক্ত সাপ দংশন করে। এসময় তার চিৎকারে বাড়ীর লোকজন উঠে এসে হাসানকে উদ্ধার করে শৈলকুপা হাসপাতালে নিয়ে যায়। পরে তাকে ঝিনাইদহ সদর হাসপাতালে রেফার্ড করা হয়। চিকিৎসাধীন অবস্থায় বৃহস্পতিবার দুপুরে তার মৃত্যু হয়। এদিকে হাসপাতালে এ্যান্টিভেনম না থাকায় বিষাক্ত সাপের ছোবলে বিনা চিকিৎসায় গত এক মাসে উপজেলার বিভিন্ন গ্রামে ৭ জনের মৃত্যু হয়। যে কারনে হাসপাতালে এ্যান্টিভেনম রাখার দাবীতে গত মঙ্গলবার শৈলকুপা উপজেলা ক্রীড়া সংস্থার উদ্যোগে এক মানববন্ধন অনুষ্ঠিত হয়। মানববন্ধনের সংবাদটি বিভিন্ন টিভি চ্যানেল ও পত্র-পত্রিকায় গুরুত্ব সহকারে প্রকাশ পায়। ফলে পরদিনই ঝিনাইদহ-১ আসনের সংসদ সদস্য আব্দুল হাই উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা রাশেদ আল মামুনের হাতে তুলে দেন। এরপরও বিনা চিসিৎসায় সাপের কামড়ে শিশু হাসানের মৃত্যু হয়। এ ব্যাপারে শৈলকুপা হাসপাতালের আরএমও ডাঃ রকিব উদ্দিন রনি জানান, হাসপাতালে এ্যান্টিভেনম বুঝে পেলেও তা প্রয়োগকারী চিকিৎসক  নেই। যে কারনে আমরা সাঁপে কাটা রোগীর চিকিৎসা দিতে ব্যর্থ।

আলমডাঙ্গা সরকারি উচ্চবিদ্যালয়ে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবর রহমান ও মুক্তিযুদ্ধকে জান প্রশ্নোত্তর পর্ব অনুষ্ঠিত

আলমডাঙ্গা অফিস ॥ আলমডাঙ্গা সরকারি উচ্চবিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীদের সাথে মুক্তিযোদ্ধাদের সরাসরি প্রশ্ন উত্তর পর্ব চলে। মুল প্রতিপাদ্য বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবর রহমান ও মুক্তিযুদ্ধকে জান। এতে সরকারি উচ্চবিদ্যালয়ের সপ্তম শ্রেনীর ছাত্ররা অংশ নেয়। তারা  মোট ১০টি গ্র“পে ভাগ হয়ে প্রশ্ন করে। মুক্তিযোদ্ধাদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন সাবেক পৌর মেয়র বীর মুক্তিযোদ্ধা এম সবেদ আলী, মুক্তিযুদ্ধের সংগঠক ডাঃ শাহাবুদ্দিন শাবু, বীর মুক্তিযোদ্ধা সাবেক পৌর কমান্ডার আলহাজ্ব শেখ নুর মোহাম্মদ জকু, সাবেক উপজেলা কমান্ডার বীর মুক্তিযোদ্ধা আব্দুল কুদ্দুস, বীর মুক্তিযোদ্ধা মইনদ্দিন আহম্মেদ, বীর মুক্তিযোদ্ধা মনীন্দ্রনাথ দত্ত, বীর মুক্তিযোদ্ধা সাহেদ আলী গাজী, বীর মুক্তিযোদ্ধা ওয়াজেদ আলী মাষ্টার, বীর মুক্তিযোদ্ধা হামিদুল ইসলাম আজম, মুক্তিযোদ্ধা পরিবারের সদস্য সাবেক উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান কাজী খালেদুর রহমান অরুন, প্রেসক্লাবের সভাপতি খন্দকার শাহ আলম মন্টু, তপন কুমার সাহা, প্রধান শিক্ষক রবিউল ইসলাম খান, সহকারি প্রধান শিক্ষক ইলিয়াস হোসেন প্রমুখ।

আলমডাঙ্গার ৩৬টি পূজা মন্ডবে এমপি ছেলুন জোয়ার্দ্দারের অনুদান প্রদান

আলমডাঙ্গা অফিস ॥ চুয়াডাঙ্গা-১ আসনের সংসদ সদস্য জেলা আওয়ামীলীগের সভাপতি বীর মুক্তিযোদ্ধা সোলায়মান হক জোয়ার্দ্দার ছেলুন আসন্ন দূর্গাপূজা উপলক্ষে ব্যক্তিগতভাবে আলমডাঙ্গার ৩৬টি পূজা মন্ডবে ৩ হাজার টাকা করে অনুদান প্রদান করেছেন। এ উপলক্ষে আলমডাঙ্গায় বিভিন্ন পূজামন্ডব কমিটির নেতৃবৃন্দের সাথে মতবিনিময় করেন। আলমডাঙ্গা উপজেলা পূজা উদযাপন পরিষদের সভাপতি ডাঃ আমল কুমার বিশ^াসের সভাপতিত্বে মতবিনিময় সভায় বিশেষ অতিথি ছিলেন আলমডাঙ্গা উপজেলা আওয়ামীলীগের সভাপতি পৌর মেয়র আলহাজ¦ হাসান কাদির গনু, পৌর আওয়ামীলীগের সভাপতি আবু মুসা, সাধারন সম্পাদক সিরাজুল ইসলাম, ভারপ্রাপ্ত উপজেলা চেয়ারম্যান এ্যাডঃ সালমুন আহম্মেদ ডন, জেলা পূজা উদযাপন কমিটির যুগ্ম আহবায়ক প্রশান্ত অধিকারী, সত্য নারায়ণ মন্দির কমিটির সহসভাপতি সুনিল অধিকারী, জেলা সদস্য সমীর দে, আলমডাঙ্গা উপজেলা হিন্দু-বৌদ্ধ-খ্রীষ্টান ঐক্য পরিষদের সভাপতি মনিন্দ্র নাথ দত্ত, সাধারন সম্পাদক বিশ^জিৎ সাধুখাঁ, পৌর সভাপতি লিপন বিশ^াস, সম্পাদক পলাশ আচার্য্য, আলমডাঙ্গা পৌর পূজা উদযাপন কমিটির সভাপতি পরিমল কুমার কালু ঘোষ, সাধারন সম্পাদকক জয় বিশ^াস, সুশিল কুমার ভৌতিকাসহ বিভিন্ন মন্দির কমিটির সভাপতি সম্পাদক প্রমুখ। প্রধান অতিথির বক্তব্যে ছেলুন জোয়ার্দ্দার এমপি বলেন- এদেশে হিন্দু সম্প্রদায়ের মানুষ যুগ যুগ ধরে সম্প্রীতির সাথে উৎসব পালন করে আসছে। কেউ এই সম্প্রীতি বিনষ্ট করতে পারবেনা। আমি আপনাদের পাশে ছিলাম, ভবিষতেও থাকবো।  কোন মন্দির সংস্কারের জন্য যদি সহযোগিতার প্রয়োজন হয় সেটা আমি করে দেয়ার চেষ্টা করবো। আপনারা শান্তিপূর্ণভাবে আপনাদের ধর্মীয় উৎসব পালন করুন।

রেলে যুক্ত হচ্ছে দ্রুতগতির ট্রেন- রেলমন্ত্রী

ঢাকা অফিস ॥ রেলমন্ত্রী নূরুল ইসলাম সুজন বলেছেন, চীন-ভারতসহ অনেক দেশে বর্তমানে রেলের আধুনিক যোগাযোগ ব্যবস্থা গড়ে উঠেছে। সেখানে দ্রুতগতির অত্যাধুনিক সব ট্রেন চলাচল করে। চীনের রেলের উন্নতি করতে ৭০ বছর সময় লেগেছে। কিন্তু আমাদের ৭০ বছর লাগবে না, আমরা শিগগিরই রেলে দ্রুতগতির আধুনিক ট্রেন যুক্ত করতে পারবো। আগামী ৩/৪ বছরের মধ্যে আমরা ঢাকা-চট্টগ্রাম দ্রুত গতির ট্রেন চালু করার পরিকল্পণা হতে নিয়েছি বলে জানান রেলমন্ত্রী। বৃহস্পতিবার দুপুরে রাজধানীর কাকরাইলে অবস্থিত ডিপ্লোমা ইঞ্জিনিয়ার্স ইনস্টিটিউশনে বাংলাদেশ রেলওয়ে শ্রমিক লীগের দ্বি-বার্ষিক সম্মেলনে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এসব কথা জানান। রেলওয়ে শ্রমিক লীগের নেতাদের উদ্দেশ্যে তিনি বলেন, আপনারা নেতা হিসেবে আপনাদের ওপরে যে দায়িত্ব অর্পণ করা হয়, সেটি যথাযথভাবে সততার সঙ্গে পালন করুন। তাহলেই রেলের উন্নতি হবে। আপনারাই যদি রেলওয়ের জায়গা দখল করে বিল্ডিং করে ভাড়া দেন, তাহলে রেলওয়ের উন্নতি কোনোদিন-ই হবে না। আপনারা ঐক্যবদ্ধ থেকে নিজেদের দায়িত্ব পালনের মাধ্যমে প্রধানমন্ত্রীর রেলওয়েকে আধুনিক করার পরিকল্পনায় সহযোগিতা করেন। এসময় তিনি রেলের বেদখলী জমি দখলমুক্ত করা হবে বলে ঘোষনা দেন। মন্ত্রী বলেন, পশ্চিমাঞ্চলের ট্রেনের ধীর গতি ও সিডিউল বিপর্যয় রোধ করতে আরেকটি বঙ্গবন্ধু রেলসেতু নির্মাণ করা হবে। যাতে করে একটি সেতুর ওপর চাপ কমে এবং ট্রেনের আর অপেক্ষা করিয়ে রাখতে না হয়। সুজন বলেন, রেলপথে যাত্রীদের সুবিধার জন্য আমরা যত ট্রেন বাড়াচ্ছি, ততোই সমস্যা  তৈরি হচ্ছে সিঙ্গেল লাইন থাকার কারণে। তাই জয়দেবপুর থেকে ঈশ্বরদী, জয়দেবপুর থেকে ময়মনসিংহ হয়ে জামালপুর পর্যন্ত, লাকসাম থেকে আখাউড়া পর্যন্ত ডাবল লাইন নির্মাণের প্রকল্প গ্রহণ করা হয়েছে। সম্মেলনের উদ্বোধন করেন শ্রম ও কর্মসংস্থান মন্ত্রণালয়ের প্রতিমন্ত্রী বেগম মন্নুজান সুফিয়ান। বাংলাদেশ রেলওয়ে শ্রমিক লীগের সভাপতি অ্যাডভোকেট মো. হুমায়ুন কবিরের সভাপতিত্বে ও সাধারণ সম্পাদক মো. হাবিবুর রহমান আকন্দের পরিচালনায় আয়োজিত সম্মেলনে বিশেষ অতিথি হিসেবে বক্তব্য রাখেন- জাতীয় শ্রমিক লীগের সভাপতি শুক্কুর মাহমুদ, জাতীয় শ্রমিক লীগের কার্যকরী সভাপতি ফজলুল হক মন্টু। এছাড়াও বক্তব্য রাখেন জাতীয় শ্রমিক লীগ ও বাংলাদেশ রেলওয়ে শ্রমিক লীগের কেন্দ্রীয় নেতারা। সম্মেলনের আলোচনা সভা শেষে বিকেলে দ্বিতীয় অধিবেশনে নির্বাচনের মাধ্যমে রেলওয়ে শ্রমিক লীগের আগামী দিনের নেতৃত্ব নির্বাচন করা হবে। দ্বিতীয় অধিবেশনে সভাপতিত্ব করবেন নির্বাচন পরিচালনা উপ কমিটির চেয়ারম্যান শুক্কুর মাহমুদ।

২২ সেবার মানসিকতা না থাকলে ডিএমপিতে থাকা যাবে না -কমিশনার

ঢাকা অফিস ॥ জনগণকে সেবা দেওয়ার মানসিকতা না থাকলে পুলিশ কর্মকর্তারা ঢাকা মহানগরীতে দায়িত্বে থাকতে পারবেন না বলে সতর্ক করেছেন ডিএমপি কমিশনার মো. শফিকুল ইসলাম। গতকাল বৃহস্পতিবার দুপুরে ঢাকেশ্বরী মন্দিরে দুর্গাপূজার নিরাপত্তা প্রস্তুতি ঘুরে দেখে সাংবাদিকদের সঙ্গে কথা বলেন শফিকুল ইসলাম। একসঙ্গে আট থানার ওসি বদলির কারণ জানতে চাইলে ডিএমপি কমিশনার বলেন, “এটা রুটিন ওয়ার্ক। আমরা যখনই মনে করছি যে তাদের চেয়ে বেটার কেউ আছে, যাতে মানুষ ভালো সেবা পাবে, আমরা সেভাবেই চেঞ্জ করছি।” এ সময় ডিএমপির বিভিন্ন বিভাগে দায়িত্বরত কর্মকর্তাদের সতর্ক করে দিয়ে তিনি বলেন, “যাদের সেবা করার মানসিকতা নাই তারা ডিএমপিতে থাকতে পারবে।” গত মাসের মাঝামাঝিতে ঢাকার মতিঝিল এলাকায় বেশ কয়েকটি ক্রীড়া ক্লাবে র‌্যাবের অভিযানে অবৈধভাবে ক্যাসিনো চালানোর ঘটনা ধরা পড়ে। পুলিশের নাকের ডগায় কীভাবে এসব জুয়ার আসর চলছিল, সেই প্রশ্ন তোলেন আওয়ামী লীগ ও এর জোট শরিক দলগুলোর নেতারা। পুলিশে ‘কালো বিড়াল’ থাকলে চলমান অভিযান সফল হবে না বলে সতর্ক করেন আওয়ামী লীগের জোট শরিক জাসদের সভাপতি হাসানুল হক ইনু। এরপর গত ১ অক্টোবর ক্যাসিনোকান্ডে আলোচিত মতিঝিল থানাসহ ঢাকার আট থানার ওসিকে বদলে দেয় পুলিশ প্রশাসন। মতিঝিল থানার ওসি মো. ওমর ফারুককে থানা থেকে সরিয়ে পাঠানো হয়েছে ঢাকা মহানগর গোয়েন্দা পুলিশের উত্তর বিভাগে। একইভাবে মিরপুর মডেল থানার ওসি মো. দাদন ফকিরকে মহানগর গোয়েন্দা পুলিশের দক্ষিণ বিভাগ এবং কোতোয়ালি থানার ওসি মো. সাহিদুর রহমানকে মহানগর গোয়েন্দা পশ্চিম বিভাগে বদলি করা হয়েছে। মতিঝিল থানায় ওসির দায়িত্বে আনা হয়েছে কলাবাগান থানার ওসি মোহাম্মদ ইয়াসির আরাফাত খানকে। উত্তরা-পূর্ব থানার পুলিশ পরিদর্শক (তদন্ত) পরিতোষ চন্দ্রকে কলাবাগান থানার ওসির দায়িত্ব দেওয়া হয়েছে। মিরপুর থানার ওসির দায়িত্বে এসেছেন খিলক্ষেত থানার ওসি মো. মোস্তাজিরুর রহমান। আর বনানী থানার পুলিশ পরিদর্শক (তদন্ত) মোহাম্মদ বোরহান উদ্দিনকে খিলক্ষেত থানার ওসি হিসেবে বদলি করা হয়েছে। কোতোয়ালি থানার ওসির দায়িত্ব পেয়েছেন শ্যামপুর থানার ওসি মো. মিজানুর রহমান। আর সবুজবাগ থানার পুলিশ পরিদর্শক (তদন্ত) মো. মফিজুল আলমকে শ্যামপুর থানার ওসির দায়িত্বে পাঠানো হয়েছে। চাকরি দেওয়ার কথা বলে এবং বিয়ের প্রলোভন দেখিয়ে এক নারীকে ধর্ষণের অভিযোগে পল্টন থানার ওসি মাহমুদুল হককে সম্প্রতি সাময়িক বরখাস্ত করা হয়। তার জায়গায় ওসির দায়িত্ব দেওয়া হয়েছে ভাটারা থানার ওসি মো. আবু বকর সিদ্দিককে। আর ভাটারা থানার ওসির দায়িত্ব পেয়েছেন বিমানবন্দর থানার পুলিশ পরিদর্শক (তদন্ত) মোক্তারুজ্জামান।

রিফাত হত্যা

পলাতক ৮ আসামির মালামাল জব্দের নির্দেশ

ঢাকা অফিস ॥ বরগুনায় আলোচিত রিফাত শরীফ হত্যা মামলার পলাতক আট আসামির মালপত্র জব্দের নির্দেশ দিয়েছে আদালত। বাদীপক্ষের আইনজীবী মুজিবুল হক কিসলু জানান, বৃহস্পতিবার সকাল সাড়ে ১০টায় বরগুনার জ্যেষ্ঠ বিচারিক হাকিম আদালতের বিচারক মোহাম্মদ সিরাজুল ইসলাম গাজী এ আদেশ দেন। মালপত্র জব্দ করা হল কি না তা আগামী ১৬ অক্টোবর আদালতকে জানাতে বলেছেন বিচারক। এই আট আসামির মধ্যে মোহাইমিনুল ইসলাম সিফাত অভিযোগপত্রের ৩ নম্বর এবং মো. মুসা ৬ নম্বর আসামি।  বাকি ছয়জন অপ্রাপ্তবয়স্ক। এ মামলায় জামিনে থাকা রিফাতের স্ত্রী আয়শা সিদ্দিকা মিন্নি ও আরিয়ান এদিন আদালতে হাজিরা দেন। আসামি রাকিবুল হাসান, রিফাত ফরাজী, রেজওয়ান আলী খান ওরফে টিকটক হৃদয়ের পক্ষে জামিন আবেদন করা হলে বিচারক তা নাকচ করে দেন। কারাগারে থাকা আরও সাত আসামিকে এদিন আদালতে হাজির করে পুলিশ। শুনানি শেষে তাদের আবার কারাগারে ফেরত পাঠানো হয়। গত ২৬ জুন বরগুনা জেলা শহরের কলেজ রোডে প্রকাশ্যে কুপিয়ে হত্যা করা হয় রিফাতকে। ওই ঘটনার একটি ভিডিও ছড়িয়ে পড়লে দেশজুড়ে সমালোচনা হয়। ওই ঘটনায় রিফাতের বাবা দুলাল শরীফ বাদী হয়ে ১২ জনকে আসামি করে বরগুনা থানায় হত্যা মামলা করেন। মামলায় রিফাতের স্ত্রী আয়শা সিদ্দিকা মিন্নিকে মামলায় ১ নম্বর সাক্ষী করা হয়। কিন্তু মিন্নির শ্বশুরই পরে হত্যাকান্ডে পুত্রবধূর জড়িত থাকার অভিযোগ তোলেন। এরপর ১৬ জুলাই মিন্নিকে বরগুনার পুলিশ সুপারের কার্যালয়ে ডেকে নিয়ে দিনভর জিজ্ঞাসাবাদ করে পুলিশ। পরে সেদিন রাতে তাকে রিফাত হত্যা মামলায় গ্রেপ্তার দেখানো হয়। পরে হাই কোর্ট থেকে শর্তসাপেক্ষে জামিন পান মিন্নি। আর হত্যাকান্ডের প্রধান সন্দেহভাজন সাব্বির আহম্মেদ ওরফে নয়ন বন্ড গত ২ জুলাই পুলিশের সঙ্গে কথিত বন্দুকযুদ্ধে নিহত হন। তদন্ত শেষে পুলিশ যে অভিযোগপত্র দেয়, সেখানে রিফাতের স্ত্রী মিন্নিসহ ২৪ জনকে আসামি করা হয়। সেই অভিযোগপত্র আমলে নিয়ে আদালত গত ১৮ সেপ্টেম্বর পলাতক নয় আসামির বিরুদ্ধে গ্রেপ্তারি পরোয়ানা জারি করে। নয়জনের মধ্যে অপ্রাপ্তবয়স্ক একজন বুধবার বরগুনার নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইব্যুনালে আত্মসমর্পণ করলে বিচারক তাকে কারাগারে পাঠানোর আদেশ দেন।

আইনী ব্যবস্থা ছাড়া খালেদার মুক্তির অন্য কোন পথ নেই – তথ্যমন্ত্রী

ঢাকা অফিস ॥ তথ্যমন্ত্রী ড. হাছান মাহমুদ পুনরায় বলেছেন, একমাত্র বিচার প্রক্রিয়ার মাধ্যমে বেগম খালেদা জিয়ার মুক্তি সম্ভব। গতকাল বৃহস্পতিবার তিনি তাঁর সচিবালয়স্থ অফিসে প্রেস ব্রিফিংয়ে বলেন, ‘একটি দুর্নীতির মামলায় বিএনপি নেত্রী কারাগারে রয়েছেন এবং কেবলমাত্র আদালতই তাকে মুক্তি দিতে পারে।’ মন্ত্রী বলেন, ‘বিএনপি সবসময় হুমকি দেয় যে, বেগম খালেদা জিয়ার মুক্তির জন্য তারা আন্দোলন গড়ে তুলবে। কিন্তু তার মুক্তি আদালতের ব্যাপার এবং অন্য কোন পথ নেই।’ তিনি বলেন, বিএনপি গত সাড়ে ১০ বছরে কোন আন্দোলন করতে পারেনি। তিনি আরো বলেন, ‘আমি বিএনপি নেতাদের প্রশ্ন করতে চাই- যেহেতু আইনী প্রক্রিয়া ছাড়া বেগম জিয়াকে মুক্ত করার কোন বিকল্প নেই। অতএব তাকে মুক্ত করতে নেতারা কোন পথে যাবেন।’ আওয়ামী লীগের প্রচার ও প্রকাশনা সম্পাদক ড. হাছান বলেন, ‘আমরা দেখছি তারা (বিএনপি নেতারা) তাকে মুক্ত করতে প্রচেষ্টা চালাচ্ছে। বিএনপির সংসদ সদস্যরা কয়েকদিন আগে খালেদা জিয়ার সঙ্গে দেখা করেছেন এবং তারা বলেছেন যে, তারা চিকিৎসার জন্য তাকে বিদেশে পাঠাবেন। প্রথমে মুক্তি বিষয়ে সমাধানে পৌঁছতে হবে এবং পরে তারা সিদ্ধান্ত নেবেন তিনি কোথায় যাবেন।’ এক প্রশ্নের জবাবে মন্ত্রী বলেন, বেগম জিয়া কোন রাজনৈতিক কারণে গ্রেফতার হয়নি এবং তিনি রাজবন্দি নন।

তিনি বলেন, ‘অতীতে অনেক রাজনৈতিক নেতা রাজনৈতিক কারণে গ্রেফতার হয়েছেন। ওইসব নেতৃবৃন্দের মুক্তির জন্য আন্দোলনও হয়েছে। কিন্তু বেগম জিয়ার বিষয়টি তেমন নয়। এতিমদের টাকা মেরে খাওয়ার কারণে দুর্নীতির মামলায় তিনি জেলে রয়েছেন।’ ২১ আগস্ট গ্রেনেড হামলার ব্যাপারে সম্প্রতি উইকিলিক্সের প্রকাশিত তথ্য সম্পর্কে ড. হাছান বলেন, ওই হামলার মূল পরিকল্পনাকারী ছিল তারেক রহমান এবং এ ব্যাপারে বেগম জিয়া ভালভাবেই অবগত ছিলেন। তিনি আরো বলেন, আদালতেও বিষয়টি প্রমাণিত হয়েছে। মন্ত্রী বলেন, ‘তৎকালীন সরকার প্রধানের পৃষ্ঠপোষকতা ছাড়া এ ধরনের হামলা চালানো সম্ভব হতো না।’ তিনি বলেন, এই হামলার মূল উদ্দেশ্য ছিল আওয়ামী লীগকে নেতৃত্ব শূন্য এবং আওয়ামী লীগ সভাপতি বর্তমান প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে হত্যা করা। তিনি আরো বলেন, ‘এখন আমি বিএনপি নেতাদের প্রশ্ন করতে চাই যে, উইকিলিক্সের তথ্য সম্পর্কে তারা কি বলবেন।’ বঙ্গবন্ধু স্যাটেলাইট-১ সম্পর্কে ড. হাছান মাহমুদ বলেন, ‘এখন সবগুলো সরকারি ও বেসরকারি টেলিভিশন চ্যানেল এই স্যাটেলাইটের মাধ্যমে তাদের অনুষ্ঠানমালা সম্প্রচার করছে। এটি আসলেই দেশের জন্য একটা আনন্দের খবর। তিনি বলেন, বিটিভির ৪টি চ্যানেল কয়েক মাস আগে থেকেই নিরবচ্ছিন্নভাবে বঙ্গবন্ধু স্যাটেলাইট-১ এর মাধ্যমে তাদের অনুষ্ঠান সম্প্রচার করছে। পূর্ণাঙ্গ সার্ভিস প্রদানের জন্য বঙ্গবন্ধু স্যাটেলাইটে সকল সুযোগ-সুবিধা রয়েছে। তথ্যমন্ত্রী বলেন, সরকার ৪৫টি টিভি চ্যানেলের লাইসেন্স প্রদান করলেও দেশে ৩৫টি টিভি চ্যানেল চালু রয়েছে। তিনি আরো বলেন, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার শাসনামলে বাংলাদেশে বেসরকারি টেলিভিশন চ্যানেলের যাত্রা শুরু হয়। ড. হাছান বলেন, দেশের সম্প্রচার মাধ্যমে শৃঙ্খলা ফিরিয়ে আনতে সরকার নিরলসভাবে কাজ করে যাচ্ছে। তিনি বলেন, ‘আমরা ইতোমধ্যে গণমাধ্যমের স্বার্থে বেশ কিছু উদ্যোগ গ্রহণ করেছি। এসব উদ্যোগ গণমাধ্যমে শৃঙ্খলা ফিরিয়ে আনবে। তিনি আরোব বলেন, সম্প্রচার মাধ্যমকে পর্যায়ক্রমে ডিজিটালাইজ করতে সরকার কাজ করে যাচ্ছে। ব্রিফিংকালে তথ্য সচিব আবদুল মালেক উপস্থিত ছিলেন।

চুয়াডাঙ্গায় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা জাতিসংঘ কর্তৃক পুরস্কৃত হওয়ায় জনসভা অনুষ্ঠিত

চুয়াডাঙ্গা অফিস ॥ চুয়াডাঙ্গায় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা জাতিসংঘ কর্তৃক ‘ভ্যাকসিন হিরো’ ও ‘চ্যাম্পিয়ন অব স্কিল ডেভেলপমেন্ট ফর ইয়ুথ’ পুরস্কারে ভূষিত হওয়ায় এবং মাদক, জঙ্গিবাদ ও সকল অপশক্তির বিরুদ্ধে অগ্রণী ভূমিকা পালন করায় জনসভা অনুষ্ঠিত হয়েছে। গতকাল বৃহস্পতিবার  বিকেল ৪টায় বড়বাজার শহীদ হাসান চত্বরে জেলা আওয়ামী লীগের আয়োজনে এ জনসভা অনুষ্ঠিত হয়। জেলা আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি ও চুয়াডাঙ্গা-২ আসনের সংসদ সদস্য হাজী মো. আলী আজগার টগরের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত জনসভায় প্রধান অতিথি হিসেবে চুয়াডাঙ্গা-১ আসনের সংসদ সদস্য ও জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি বীর মুক্তিযোদ্ধা সোলায়মান হক জোয়ার্দ্দার ছেলুন বক্তব্য রাখেন। জেলা আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক মুন্সী আলমগীর হান্নানের সঞ্চালনায় জনসভায় জেলা আওয়ামী লীগের যুগ্মসাধারণ সম্পাদক রিয়াজুল ইসলাম জোয়ার্দ্দার টোটন, সদর উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি আব্দুল মান্নান নান্নু, আলমডাঙ্গা উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি ও পৌর মেয়র হাসান কাদির গনু, দামুড়হুদা উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি সিরাজুল আলম ঝন্টু, জীবননগর উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি গোলাম মোর্তুজা, চুয়াডাঙ্গা পৌর আওয়ামী লীগের ভারপ্রাপ্ত সাধারণ সম্পাদক আলাউদ্দিন হেলা, দর্শনা পৌর আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ও পৌর মেয়র মতিয়ার রহমান, জীবননগর পৌর আওয়ামী লীগের সভাপতি আব্দুল লতিফ অমল, জেলা শ্রমিক লীগের সভাপতি আফজালুল হক, জেলা মহিলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক নুরুন্নাহার কাকলি, আওয়ামী যুবলীগের সাবেক আহবায়ক আরেফিন আলম রঞ্জু ও জেলা ছাত্রলীগের সভাপতি মোহাইমেন হাসান জোয়ার্দ্দার অনিক জনসভায় বক্তব্য রাখেন। জনসভার প্রধান অতিথি সোলায়মান হক জোয়ার্দ্দার ছেলুন বলেন, স্বাস্থ্যসেবায় যারা মাঠকর্মী তাদের কাজের স্বীকৃতিস্বরুপ প্রধানমন্ত্রী ভ্যাকসিন হিরো পুরস্কার এবং যুবকদের দক্ষতা বৃদ্ধির স্বীকৃতি হিসেবে চ্যাম্পিয়ন অব স্কিল ডেভেলপমেন্ট ফর ইয়ুথ পুরস্কার লাভ করেছেন। এক সময়ের সন্ত্রাসী জনপদ এখন শান্তির শহরে পরিণত হয়েছে। তৎকালীন স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী মোহাম্মদ নাসিম ও আমার নেতৃত্বে সন্ত্রাসীরা আত্মসমর্পণ করে। আগে সন্ত্রাসী ছিলো, এখন নেতা হয়েছে। আন্ডার গ্রাউন্ড, আয়ুব খান, বিএনপি-জামায়াত দেখেছি। আমি মনে করলে ব্রীজ পার হবে না। পৌরসভায় যাবে না। মিয়ারা ভাব দেখায়। ঢাকায় বসে মিটিং করছে। ঘষেটি বেগম, রায় দূর্লভ ও মীর জাফর ষড়যন্ত্র করে লাভ হবে না। আমাদের নেত্রী বলেছেন সম্মেলনের আগে ক্যাসিনো সংগঠন ভেঙ্গে দেয়া হবে। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা  ২৪ ঘন্টার মধ্যে ১৮ ঘন্টা পরিশ্রম করেন। সাধারণ মানুষের মঙ্গল হয় সেটা ভাবেন। ষড়যন্ত্র করছো। মানুষ বুঝতে শিখেছে। ধোকাবাজি দিয়ে চলা যাবে না। দুই এমপি এক জায়গায় হয়ে চুয়াডাঙ্গার সার্বিক উন্নয়ন করবে। শেখ হাসিনার আশির্বাদ রয়েছে। স্কুল-কলেজ রাস্তাঘাট বিল্ডিং আগামী ৩ বছরের মধ্যে যেগুলো বাকী রয়েছে করা হবে।  চোর-চুটকাদের হাত থেকে দেশ বাঁচাতে হবে। নিজের জমিতে পুকুর নালা করেছে সদর উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান। দুদককে বলবো খোঁজ নেবেন। চুয়াডাঙ্গা পৌরসভার হিসেবে নিতে হবে। গুজবে কান দেবেন না বঙ্গবন্ধু বলতেন। বিভেদ তৈরীর জন্য তারা মাঠে নামবে। আমার ও টগরেরর মধ্যে বিভেদ হবে না। আপনাদের মধ্যে বিভেদ করার চেষ্ট করবে। বিএনপি-জামায়ত দেখেছি। সোনা টানা, সুদখোর ও রিভলবার দিয়ে চাঁদাবাজী করছে। দেশ জননেত্রী শেখ হাসিনা এগিয়ে নিয়ে যাচ্ছে। বঙ্গবন্ধুকে আমরা বাঁচাতে পারি নাই। শেখ হাসিনাকে ১৯বার হত্যার ষড়যন্ত্র করেছে। শেখ হাসিনা উন্নয়ন করেছে। অন্য কোন সরকার করে নাই। ক্ষুধা ও দারিদ্রমুক্ত দেশ গড়ার স্বপ্ন ছিলো বঙ্গবন্ধুর। সব ভেদাভেদ ভুলে শেখ হাসিনার হাতকে শক্তিশালী করতে হবে। মূলস্রোতের বাইরে গিয়ে কিছু করা যাবে না। বেশি বাড়াবাড়ি করেন না। ঘরের শক্র বিভিষন। চিন্তার কোন কারণ নেই।

কুমারখালীতে ব্যাংক এশিয়ার এজেন্ট ব্যাংকিং শাখা কার্যক্রম উদ্বোধন

কুমারখালী প্রতিনিধি ॥ কুষ্টিয়ার কুমারখালী শহরের বাসস্ট্যান্ড এলাকার আবুল হোসেন তরুণ মার্কেটে ব্যাংক এশিয়ার এজেন্ট ব্যাংকিং শাখা কার্যক্রম উদ্বোধন করা হয়েছে। গতকাল বৃহস্পতিবার বেলা সাড়ে ১১টায় ফিতা কেটে এই এজেন্ট ব্যাংকিং শাখার আনুষ্ঠানিক উদ্বোধন করেন কুমারখালী উপজেলা নির্বাহী অফিসার রাজীবুল ইসলাম খান। এ সময় ব্যাংক এশিয়ার কুষ্টিয়া এরিয়া ম্যানেজার মাসুদ রানা, অফিসার বিধান রায়, এজেন্ট মো. দেলোয়ার হোসেন, ব্যবসায়ী মাহফুজ করিম রকেট, মো. শাহিন সুলতান টিপু উপস্থিত ছিলেন। এই উদ্বোধনী অনুষ্ঠানের সার্বিক তত্বাবধানে ছিলেন, ব্যবসায়ী ও কুমারখালী বাজার ইউডিসি আউটলেট মো. জাহাঙ্গীর আলম। উদ্বোধনী অনুষ্ঠানের আগে ব্যাংক এশিয়ার এজেন্ট ব্যাংকিং সেবা কার্যক্রম বিষয়ে উপস্থাপন করেন, ব্যাংক এশিয়ার কুষ্টিয়া এরিয়া ম্যানেজার মাসুদ রানা।

গাংনীতে শারদীয় দূর্গা পূজা উপলক্ষে পুলিশ সুপারের ব্রিফিং প্যারেড অনুষ্ঠিত

গাংনী প্রতিনিধি ॥ গাংনীতে আসন্ন শারদীয় দূর্গা পূজা-২০১৯ উপলক্ষে পুলিশ সুপারের ব্রিফিং প্যারেড অনুষ্ঠিত হয়েছে। গতকাল বৃহস্পতিবার সকাল ১১টার সময় গাংনী থানা পুলিশের আয়োজনে শারদীয় দূর্গোৎসবে নিরাপত্তা কর্মী হিসাবে দায়িত্বপ্রাপ্ত পুলিশ, আনসার-ভিডিপি সদস্যদের  ব্রিফিং প্যারেড অনুষ্ঠিত হয়েছে। পুলিশ সুপার সকলের সার্বিক সহযোগিতায় সার্বজনীন দূর্গা পূজা উৎসব সুন্দর ও সফলভাবে পালনের জন্য করণীয় ও দিক নির্দেশনামূলক পরামর্শ দেন। ব্রিফিং অনুষ্ঠানে গাংনী থানার অফিসার ইনচার্জ ওবাইদুর রহমানের সভাপতিত্বে প্রধান অতিথি হিসাবে বক্তব্য রাখেন, মেহেরপুর পুলিশ সুপার এসএম মুরাদ আলী। অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি ছিলেন মেহেরপুর জেলার অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (সদর দপ্তর) হাসিবুল আলম, গাংনী থানার পুলিশ পরিদর্শক (তদন্ত) সাজেদুল ইসলাম, গাংনী উপজেলা আনসার ভিডিপি কর্মকর্তা (ভারপ্রাপ্ত) উর্মিলা বিশ্বাস ও আনসার ভিডিপির ট্রেনিং ইন্সট্রাক্টর মোস্তাফিজুর রহমান প্রমুখ। এসময় গাংনী ও মেহেরপুর সদর থানার এসআই, এএসআই, পুলিশ সদস্য ও আনসার ভিডিপির শতাধিক সদস্য সদস্যা উপস্থিত ছিলেন। উল্লেখ্য, গাংনী উপজেলায় এবছর ২২ টি পূজা মন্ডপের আয়োজন করা হয়েছে। এ জন্য প্রতি পূজামন্ডপে একজন পুলিশ সহ ২ জন আনসার সদস্য ও ২ জন মহিলা গ্রাম প্রতিরক্ষা দলের সদস্য নিয়োগ দেয়া হয়েছে। এছাড়াও স্থানীয়ভাবে পূজা উদযাপন কমিটির উদ্যোগে স্বেচ্ছাসেবকদের দায়িত্ব দেয়া হয়েছে।

দৌলতপুর সীমান্তে মাদক উদ্ধার

দৌলতপুর প্রতিনিধি ॥ কুষ্টিয়ার দৌলতপুর সীমান্তে বিজিবি’র পৃথক অভিযানে মাদক উদ্ধার হয়েছে। গতকাল বৃহস্পতিবার সকাল ৭টার দিকে আশ্রয়ন বিজিবি বিওপি’র টহল দল  মুন্সিগঞ্জ এলাকায় অভিযান চালিয়ে সাড়ে  ৮ কেজি গাঁজা উদ্ধার করেছে। অপরদিকে গতকাল ভোররাতে জয়পুর বিওপি’র টহল দল ময়রামপুর মাঠে অভিযান চালিয়ে ১৭ বোতল বেঙ্গল টাইার মদ উদ্ধার করেছে। তবে উদ্ধার হওয়া সব মাদকের সাথে জড়িত কেউ আটক হয়নি।

ত্রাণ সহায়তার আশ্বাস প্রশাসনের

বিস্তীর্ণ জমির ফসল বিনষ্ট

কুমারখালীতে পদ্মা তীরবর্তী এলাকায় দুর্ভোগে মানুষ ও পশু

কুমারখালী প্রতিনিধি ॥ অসময়ে পদ্মায় পানি বৃদ্ধির কারণে কুষ্টিয়ার কুমারখালীর জগন্নাথপুর ইউনিয়নের চরাঞ্চলের প্রায় দুই’শ পরিবার চরম দুর্ভোগের মধ্যে দিনাতিপাত করছে। সেই সাথে খোলা আকাশের নীচে খাদ্য সংকটে রয়েছে বিপুল সংখ্যক গবাদি পশু। ওই অঞ্চলের বিস্তীর্ণ জমির নানা-ধরণের ফসল পানিতে নিমজ্জিত হয়েছে এবং তীব্র স্রোতে ভেসে গেছে।

গতকাল বৃহস্পতিবার সকালে উপজেলা নির্বাহী অফিসার রাজীবুল ইসলাম খান জগন্নাথপুর ইউনিয়নের পদ্মার তীরবর্তী এলাকা নৌকায় ঘুরে দেখেছেন। এ সময় উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা মো. মাহমুদুল ইসলাম ও স্থানীয় ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান ও সদস্যরা উপস্থিত ছিলেন। বন্যাকবলিত এলাকা পরিদর্শনকালে ইউএনও রাজীবুল ইসলাম খান ক্ষতিগ্রস্থ মানুষের মাঝে প্রয়োজনীয় ত্রাণ সামগ্রী প্রদানের আশ্বাস দিয়েছেন।

বন্যা কবলিত এলাকায় সরেজমিন ঘুরে দেখা গেছে, অসময়ের এই বন্যায় উপজেলার জগন্নাথপুর ইউনিয়নের চর মহেন্দ্রপুর, চর জগন্নাথপুর, চরভবানীপুর ও চর দয়ারামপুর এলাকার মানুষ চরম দুর্ভোগে রয়েছেন। চরাঞ্চালের কোথাও উঁচু জায়গা না থাকায় গৃহপালিত পশুগুলোর নিরাপদ আশ্রয়ের জন্য পার্শ্ববর্তী এলাকার উঁচু জায়গায় নিয়ে যাওয়া হয়েছে। খোলা আকাশের নীচে বাঁশের বেড়া দিয়ে আটকে রাখা হয়েছে গরু-মহিষ ও ছাগল-ভেড়াগুলোকে। ফসলী জমি পানিতে নিমজ্জিত হওয়ায় পশু খাদ্যেরও সংকট দেখা দিয়েছে। জগন্নাথপুর ইউনিয়নের চেয়ারম্যান ফারুক আহমেদ খান জানান, অসময়ে অস্বাভাবিক পানি বৃদ্ধির কারণে জগন্নাথপুর ইউনিয়নের পদ্মা তীরবর্তী কয়েকটি গ্রামের মানুষের চরম দুর্ভোগে রয়েছেন। আর ওই এলাকায় নানা ধরণের ফসলসহ জমি পানির নীচে তলিয়ে গেছে। অন্যদিকে, কয়া ইউনিয়নের কালোয়া, বেড় কালোয়া, সুলতানপুর ও শিলাইদহ ইউনিয়নের কোমরকান্দি ও কল্যাণপুর এলাকার মানুষ ভাঙ্গন আতঙ্কে রয়েছেন। গত বুধবার কয়া ইউনিয়নের কালোয়া গ্রামে একটি বসত ঘর সহ গ্রামরক্ষা বাঁধের আরসিসি ব¬ক ধসে নদীতে চলে গিয়েছে। বাঁধ ধসে যাওয়ার খবর পেয়ে স্থানীয় সংসদ সদস্য, জেলা প্রশাসক, পানি উন্নয়ন বোর্ডের কর্মকর্তা, উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তাসহ অনেকেই ভাঙন কবলিত এলাকা পরিদর্শন করেছেন। পানি উন্নয়ন বোর্ডের উদ্যোগে ধসে যাওয়া স্থানে আরসিসি ব¬ক ও বালির বস্তা ফেলানো শুরু হয়েছে।

শৈলকুপায় স্কুল ছাত্রকে কুপিয়ে হত্যার ঘটনায় সহপাঠিসহ ২ জন আটক

ঝিনাইদহ প্রতিনিধি ॥ ঝিনাইদহের শৈলকুপা উপজেলার কাঁচেরকোল ইউনিয়নের সাদেকপুর গ্রামে ৮ম শ্রেণীর ছাত্র জুয়েল হত্যা মামলায় তার সহপাঠিসহ ২ জনকে আটক করেছে পুলিশ। গতকাল বৃহস্পতিবার ভোররাতে শৈলকুপার সাদেকপুর গ্রাম থেকে তাদের আটক করা হয়। আটককৃতরা হলো-ওই গ্রামের রেজাউল করিমের ছেলে রাতুল (১৫) ও একই গ্রামের রিয়াজ শেখের ছেলে সাগর হোসেন (২১)। শৈলকুপা থানার ওসি বজলুর রহমান জানান, স্কুলছাত্র জুয়েল হত্যার সাথে জড়িত সন্দেহে গতকাল ভোররাতে ওই গ্রাম থেকে সহপাটি রাতুল ও প্রতিবেশী সাগরকে আটক করা হয়। তাদের জিজ্ঞাসাবাদ করা হলে রাতুল হত্যার কথা স্বীকার করে। পরে তাদের দেখানো স্থান থেকে উদ্ধার করা হয় হত্যাকান্ডে ব্যবহৃত ধারালো অস্ত্র। এ ঘটনায় নিহতদের পিতা নজরুল ইসলাম বাদী হয়ে শৈলকুপায় থানায় একটি হত্যা মামলা দায়ের করলে আটককৃতদের গ্রেফতার দেখানো হয়। বুধবার সন্ধ্যায় উপজেলার সাদেকপুর গ্রামের একটি ধানক্ষেতে বেণীপুর মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের ৮ম শ্রেণীর ছাত্র জুয়েলের লাশ পড়ে থাকতে দেখে পুলিশে খবর দেয় এলাকাবাসী। পরে পুলিশ তার লাশ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য ঝিনাইদহ সদর হাসপাতাল মর্গে পাঠায়।

দুর্গোৎসবের পুজামন্ডব পাহারায় আনসার ভিডিপি

নিরপেক্ষ দায়িত্ব পালনে সর্বদা প্রস্তুত থাকতে হবে

নিজ সংবাদ ॥ বাঙালি সংস্কৃতির সনাতনী ধর্মাম্বলী মানুষের সর্ববৃহৎ উৎসবই হচ্ছে শারদীয় দুর্গোৎসব। এই পরমপরার বাঙালি চেতনার প্রাণের উৎসবকে সুন্দর, সার্থক, সফল ও সুষ্ঠুভাবে সম্পন্ন করতে  জেলা পুলিশের পাশাপাশি আনসার ভিডিপি গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে আসছে। প্রতিবারের ন্যায় এবারের দুর্গোৎসবে পুজামন্ডব অন্যান্য বারের চেয়ে অনেক বেশি এবং অধিক গুরুত্বপূর্ন। সেক্ষেত্রে জেলা প্রশাসন, জেলা পুলিশ ও আনসার ভিডিপি সহ সংশ্লিষ্ট প্রত্যেকের দায়িত্ব এবার একটু বেশি। গতকাল বৃহস্পতিবার সকালে জেলা আনসার ভিডিপি কার্যালয় মিলনায়তনে দুর্গোৎসবের পুজামন্ডব পাহারায় আনসার ও ভিডিপি সদস্যদের দায়িত্ব বন্টন অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে জেলা আনসার ও ভিডিপি কর্মকর্তা তরফদার আলমগীর হোসেন এসব কথা বলেন।

প্রধান অতিথি আরো বলেন, একটি পুজামন্ডবের দায়িত্ব পালনে পুলিশ সদস্য থাকে দু’চারজন। কিন্তু আনসার ভিডিপি বাহিনীর সদস্য থাকে অনেক। সুষ্ঠুভাবে দুর্গোৎসব সম্পন্ন করতে কোন রূপ বিশৃংখলা, ধ্বংসাত্বক কার্যকলাপসহ যে কোন অপরাধ দমন ও নিয়ন্ত্রণে আনতে নিরপেক্ষ দায়িত্ব পালনে নিজেকে সর্বদায় প্রস্তুত রাখবে জেলা আনসার ভিডিপি সদস্য/সদস্যাগণ। শান্তি শৃংখলা উন্নয়ন নিরাপত্তায় সর্বত্র আমরা শ্লোগানে দুর্গোৎসবের পুজামন্ডব পাহারায় আনসার ও ভিডিপি সদস্যদের দায়িত্ব বন্টন অনুষ্ঠানে কুষ্টিয়া-মেহেরপুরের সকল উপজেলা আনসার ভিডিপি কমান্ডারগণ উপস্থিত ছিলেন। প্রধান অতিথি দূর্গোৎসব চলাকালীন সময়ে একজন আনসার ভিডিপি সদস্যের কি কি দায়িত্ব পালন করতে হবে আর কিকি দায়িত্ব পালনে বুদ্ধিমত্তার পরিচয় দিয়ে তাৎক্ষনিক সমাধান করতে হবে তার বিস্তারিত তুলে ধরেন। কোনটা ন্যায় আর কোনটা অন্যায় তা দেখিয়ে দেন এবং বুঝিয়ে দেন এবং তিনি বলেন দূর্গোৎসব চলাকালিন সময়ে কোনভাবেই জেলায় কোন বিশৃংখলা মেনে নেয়া হবেনা। মনে রাখবেন দূর্গোৎসবের পুজামন্ডবে আসা সনাতনী ধর্মের সম্মানীত দর্শনার্থী ভক্ত ও সাধারণ মানুষের নিরাপত্তা নিশ্চিত করতে আমরা বদ্ধপরিকর। এবারের দূর্গোৎসবের পুজামন্ডবের নিরাপত্তা ও পাহারায় কুষ্টিয়া জেলার ১৩২৯ জন আনসার ভিডিপির সদস্য এবং মেহেরপুর জেলার ২০৪ জন আনসার ভিডিপির সদস্য দায়িত্ব পালন

শেখ হাসিনার ভারত সফরে পানি বণ্টন নিয়ে ‘সুখবর’ চান ফখরুল

ঢাকা অফিস ॥ প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার ভারত সফরে তিস্তাসহ অভিন্ন নদীর পানির ন্যায্য হিস্যা নিয়ে ‘সুখবর’ শুনতে চায় বিএনপি। গতকাল বৃহস্পতিবার দুপুরে জাতীয় প্রেস ক্লাবের সামনে সম্মিলিত পেশাজীবী পরিষদ আয়োজিত এক মানববন্ধনে বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর বলেন, “প্রধানমন্ত্রী গেছেন ভারতে। ভারতের সঙ্গে এই সরকারের নাকি সবচেয়ে সুউচ্চ সম্পর্ক, পর্বতের শৃঙ্গের মতো সম্পর্ক। “তো বার বার আমরা হতাশ হই; যত বার যান দেখি যে, আমাদের যে মূল সমস্যাগুলো রয়েছে সেই সমস্যাগুলো সমাধান হয় না। কিন্তু আমরা দিয়ে আসি একেবারে উজাড় করে।” ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীর আমন্ত্রণে চার দিনের সরকারি সফরে বৃহস্পতিবার সকালে নয়াদিল্লিতে পৌঁছেছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। তৃতীয় মেয়াদে সরকারপ্রধান হিসেবে দায়িত্ব গ্রহণের পর দিল্লিতে শেখ হাসিনার এই প্রথম সফরে বাংলাদেশের পক্ষ থেকে অন্যান্য বিষয়ের সঙ্গে তিস্তার পানি বণ্টন চুক্তি, আসামের নাগরিকপঞ্জি এবং সীমান্ত হত্যার প্রসঙ্গ তোলা হবে বলে আগেই জানিয়েছেন পররাষ্ট্রমন্ত্রী এ কে আব্দুল মোমেন। বিএনপি মহাসচিব বলেন, “আজকেও জনগণ আশা করবে, জনগণের যে প্রত্যাশা- তিস্তাসহ সকল অভিন্ন নদীর পানির যে ন্যায্য হিস্যা বাংলাদেশ পাবে, সেটা সম্পর্কে অবশ্যই একটা সুখবর নিয়ে আসবেন- বাংলাদেশ পাবে। “আমরা আশা করব আমাদের সীমান্তে যে হত্যা, তা বন্ধ হয়ে যাবে।” ভারতের নাগরিকপঞ্জি নিয়ে ফখরুল বলেন, “আমাদের বাংলাদেশিদের নিয়ে যখন ভারতের মন্ত্রী ও নেতারা বিভিন্ন রকম কথা বলেন যে, বের করে দেওয়া হবে আসাম থেকে, বের করে দেওয়া হবে উত্তর প্রদেশ থেকে তখন স্বাভাবিকভাবেই বাংলাদেশের মানুষ হিসেবে, নাগরিক হিসেবে আমরা উদ্বিগ্ন হই। “এজন্য উদ্বিগ্ন হই যে, আমাদের কোনো মানুষ ভারতে গেছে বলে আমরা মনে করি না।” খালেদা জিয়ার মুক্তির দাবিতে আয়োজিত এই মানববন্ধনে সংগঠনের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি শওকত মাহমুদের সভাপতিত্বে ও সদস্য এজেডএম জাহিদ হোসেনের পরিচালনায় আরও বক্তব্য রাখেন সাংবাদিক রুহুল আমিন গাজী, এম আবদুল্লাহ, কাদের গনি চৌধুরী, শহিদুল ইসলাম, শিক্ষাবিদ শামসুল আলম, চিকিৎসক অধ্যাপক মোস্তাক রহিম স্বপন, প্রকৌশলী রিয়াজুল ইসলাম রিজু, কৃষিবিদ মোস্তাফিজুর রহমান, শামীমুর রহমান শামীম, শিক্ষক-কর্মচারী ঐক্যজোটের জাকির হোসেন, সম্মিলিত সাংস্কৃতিক জোটের রফিকুল ইসলাম, নার্সেস অ্যাসোসিয়েশনের জাহানারা বেগম প্রমুখ।

খালেদার জামিন শুনানিতে বিরোধিতা না করতে সরকারের প্রতি আহ্বান

ঢাকা অফিস ॥ আদালতে খালেদা জিয়ার জামিন আবেদনের বিরোধিতা না করতে সরকারের প্রতি আহ্বান জানিয়েছেন বিএনপি সমর্থক আইনজীবীদের নেতা জয়নুল আবেদীন। গতকাল বৃহস্পতিবার সুপ্রিম কোর্ট আইনজীবী সমিতিতে সংবাদ সম্মেলনে এই আহ্বান জানান তিনি। দুই মামলায় দন্ড নিয়ে দেড় বছরের বেশি সময় ধরে কারাবন্দি খালেদার সঙ্গে গত দুই দিনে বিএনপির সাত সংসদ সদস্য দেখা করে আসার পর তার ছাড়া পাওয়া নিয়ে নতুন করে আলোচনা শুরু হয়েছে। খালেদা প্যারোলে মুক্তি চান না জানিয়ে ‘রাজনৈতিক বন্দি’ হিসেবে তার জামিনের ব্যবস্থা করতে প্রধানমন্ত্রীর কাছে অনুরোধ করেছেন দলটির সংসদ সদস্যরা। তার প্রতিক্রিয়ায় আগের মতোই তথ্যমন্ত্রী হাছান মাহমুদ বলেছেন, খালেদা রাজবন্দি নন, ফলে তার জামিনের বিষয়টি পুরোপুরি আদালতের বিষয়। সুপ্রিম কোর্ট আইনজীবী সমিতির সভাপতি জয়নুল আবেদীন বলেন, সরকারের পক্ষ থেকে বিভ্রান্তিকর বক্তব্য দেওয়া হচ্ছে। “সরকার একদিকে বলছে, আদালত জামিন দিলে তাদের আপত্তি নাই। অথচ আমরা যখন আদালতে জামিন আবেদন শুনানি করি, তখন সরকার পক্ষ থেকে জোরালোভাবে জামিনের বিরোধিতা করা হয়। যদিও এই ধরনের মামলায় আর কখনও সরকার পক্ষ থেকে এভাবে জোরালো আপত্তি করতে দেখি নাই।” দুর্নীতির দুই মামলায় দন্ড নিয়ে সাবেক প্রধানমন্ত্রী খালেদা গত বছরের ফেব্র“য়ারি থেকে কারাবন্দি। গত ছয় মাস ধরে তিনি চিকিৎসার জন্য বিএসএমএমইউ হাসপাতালে রয়েছেন। সুপ্রিম কোর্ট ও নিম্ন আদালত মিলে খালেদার বিরুদ্ধে এখন ১৭টি মামলা বিচারাধীন। এর মধ্যে দুটি মামলায় (জিয়া এতিমখানা ট্রাস্ট ও জিয়া দাতব্য ট্রাস্ট দুর্নীতি মামলা) জামিন পেলেই তিনি কারাগার থেকে মুক্তি পেতে পারেন বলে তার আইনজীবীদের ভাষ্য।  দুর্নীতি দমন কমিশনের এ দুই মামলায় তার ১৭ বছরের কারাদন্ড হয়েছে। জিয়া এতিমখানা ট্রাস্ট দুর্নীতি মামলায় ১০ বছরের সাজার রায়ের বিরুদ্ধে খালেদার আবেদন আপিল বিভাগে এবং দাতব্য ট্রাস্ট দুর্নীতি মামলায় নিম্ন আদালতের দেওয়া ৭ বছরের সাজার বিরুদ্ধে করা আপিল হাই কোর্টে বিচারাধীন। জয়নুল আবেদীন বলেন, “আমরা পুনরায় জামিনের জন্য আদালতে যাব। আমরা আশা করি, সরকার যে কথা বলছে (আদালত জামিন দিলে আপত্তি নাই) তা সরকারি আইন কর্মকর্তার মাধ্যমে আদালতে জোরালোভাবে উপস্থাপন করা হবে। “প্রথমে হাই কোর্ট থেকে জামিন নিয়ে পরে আপিল বিভাগে আবেদন করব। সরকার হস্তক্ষেপ না করলে এই দুই মামলায় জামিন পেলে তার মুক্তিতে কোনো বাধা থাকবে না।” আইনি লড়াই চালিয়ে খালেদাকে মুক্ত করা যাবে না বলে বিএনপির অনেক নেতা মনে করলেও আদালত থেকেই খালেদার জামিনের আদেশ পাওয়ায় আশাবাদী দলটির ভাইস চেয়ারম্যান জয়নুল। “খালেদা জিয়ার মামলা রাজনৈতিক উদ্দেশ্যেপ্রণোদিত। তিনি আইনগতভাবে জামিন পাওয়ার অধিকার রাখেন। যদি সরকার হস্তক্ষেপ না করে তিনি আদালত থেকে জামিন পাবেন।” বিএনপি চেয়ারপারসন সরকারের নির্বাহী আদেশে বা প্যারোলে মুক্তি নিচ্ছেন কি না-প্রশ্ন করা হলে তিনি বলেন, ‘যখনি জামিন আবেদন নিয়ে সোচ্চার হই, তখনই একটা খবর এসে যায়, খালেদা জিয়া প্যারোলে চলে যাচ্ছেন। এই যে প্যারোল-প্যারোল রাজনীতি, এতে খালেদা জিয়ার ভাবমূর্তি ক্ষুন্ন হচ্ছে। “সরকার বার বার বলে আমাদের কাছে দোষ স্বীকার করে ক্ষমা চান। খালেদা জিয়া নির্দোষ, তিনি কেন দোষ স্বীকার করবেন? আমরা লক্ষ্য করছি ইতোমধ্যে খালেদা জিয়াকে নিয়ে বিভিন্ন পত্র-পত্রিকায় প্যারোল সংক্রান্ত বিষয়ে বিভ্রান্তি ছড়ানো হচ্ছে। খালেদা জিয়া বাংলাদেশের গণমানুষের নেত্রী, আপসহীন নেত্রী।” জরুরি অবস্থার সময় বিএনপিকে ‘সংস্কারপন্থি’ হিসেবে পরিচিতি পাওয়া জয়নুল বলেন, “ওয়ান-ইলেভেনের সরকারও খালেদা জিয়াকে রাজনীতি থেকে মাইনাস করার জন্য প্যারোলের নাম করে বিদেশ পাঠাতে চেয়েছিল। কিন্তু খালেদা জিয়া দৃঢ়তার সাথে তা প্রত্যাখ্যান করেছিলেন।” সংবাদ সম্মেলনে জয়নুল আবেদীনের সঙ্গে ছিলেন রফিকুল হক তালুকদার রাজা, গোলাম রহমান ভূইয়া, কামরুল ইসলাম সজল, এহসানুর রহমান, এ আর রায়হানসহ বিএনপি সমর্থক আইনজীবীরা।

 

চলমান অভিযানে আরো অনেক রাঘব বোয়াল ধরা পড়বেন – কাদের

ঢাকা অফিস ॥ আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক এবং সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের বলেছেন, দুর্নীতির বিরুদ্ধে চলমান শুদ্ধি অভিযানে আরো অনেক রাঘব বোয়াল ধরা পড়বেন। গতকাল বৃহস্পতিবার সচিবালয়ে মন্ত্রণালয়ের সভা কক্ষে সমসাময়িক রাজনৈতিক বিষয় নিয়ে আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে সাংবাদিকদের এক প্রশ্নের জবাবে তিনি এ কথা বলেন। ওবায়দুল কাদের বলেন, ‘সারা বাংলাদেশে অপকর্ম যারা করেছে তাদের তালিকা প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার কাছে আছে। বিগত দিনে যারা গ্রেফতার হয়েছেন তারা কেউ ছোট খাটো অপরাধী নন। অভিযানে আরো অনেক রাঘব বোয়াল ধরা পড়বে।’ বিএনপি চেয়ারপার্সন বেগম খালেদা জিয়ার স্বাস্থ্যের বিষয়ে বিএনপি নেতারা যেভাবে কথা বলছেন, চিকিৎসকরা তেমন কিছু বলছেন না জানিয়ে সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী বলেন, কারাবন্দি খালেদা জিয়ার স্বাস্থ্যের বিষয়ে তার দল বিএনপির বক্তব্য ও চিকিৎসকদের বক্তব্য এক নয়। চিকিৎসকদের রিপোর্টের ওপর ভিত্তি করে কোনো কথা বলা হলে ব্যবস্থা নেওয়া হবে। আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক বলেন, বিএনপির প্রতি সবসময়ই আমরা নমনীয়। তবে বিএনপি যদি কঠোর অবস্থানে যায়, পরিস্থিতি বুঝে জবাব দেবে আওয়ামী লীগ। দেশের অন্যতম বড় রাজনৈতিক দল হিসেবে বিএনপি সরকার প্রধানের সঙ্গে দেখা করতে পারেন, তাদের সমস্যা তুলে ধরে সহযোগিতা চাইতে পারেন। এটাই গণতান্ত্রিক চর্চ্চার একটি অংশ।

দুর্নীতি মামলায় কারাবন্দি খালেদা জিয়ার মুক্তির বিষয়ে বিএনপি নেতাদের দাবি-আহ্বানের বিষয়ে ওবায়দুল কাদের বলেন, খালেদা জিয়াকে কারাগার থেকে বের করার জন্য বিএনপি আন্দোলনের কথা বললেও এখন পর্যন্ত তারা তা করতে পারেনি। আমি চাই তারা আন্দোলন করুক। আমি বলেছি তারা আন্দোলন করে খালেদা জিয়াকে মুক্ত করুক। এত বড় একটা দল, খালেদা জিয়ার জন্য রাজপথে কোনো আন্দোলন হলো না। হংকংয়ে গত চার মাস ধরে আন্দোলন হচ্ছে। অথচ খালেদা জিয়ার জন্য এত দিনে এক হাজার লোক একটা মিছিল করলো না। একটা ঝটিকা মিছিলও হলো না। তারাইতো বলেছেন, আন্দোলন করে খালেদা জিয়াকে মুক্ত করবেন। জনগণকে সঙ্গে নিয়ে আন্দোলন করতে হবে। আওয়ামী লীগে অনুপ্রবেশকারীদের তালিকা প্রধানমন্ত্রীর কাছে আছে জানিয়ে ওবায়দুল কাদের বলেন, সারা বাংলাদেশে অপকর্ম যারা করেছে তাদের তালিকা প্রধানমন্ত্রীর কাছে আছে। যার যার এলাকা আছে সেখানে কমিটি গঠনের সময় একটু সতর্ক হতে হবে। যেনো অপকর্মকারীরা আওয়ামী লীগে স্থান না পায়। আওয়ামী লীগকে ঢেলে সাজাতে আগামী নভেম্বরের মধ্যে সাত বছর ধরে মেয়াদ উত্তীর্ণ থাকা যুবলীগ, স্বেচ্ছাসেবক লীগ, কৃষক লীগ এবং শ্রমিক লীগের নতুন কমিটি দেওয়ার কথা বলেন ওবায়দুল কাদের।

 

মিরপুরে ৪র্থ শ্রেণির স্কুল ছাত্রীকে যৌন হয়রানির অভিযোগ

আমলা অফিস ॥ কুষ্টিয়ার মিরপুরে চতুর্থ শ্রেণির এক স্কুল ছাত্রীকে যৌন হয়রানির অভিযোগ উঠেছে আব্দুল মালেক ও রঙ্গন ওরফে শফিকুল নামের দুই ব্যক্তির বিরুদ্ধে। গত মঙ্গলবার (১ অক্টোবর) দুপুরে উপজেলার নওদাপাড়া এলাকায় এ ঘটনা ঘটে। অভিযুক্ত আব্দুল মালেক (৫৫) নওদাপাড়া এলাকার মৃত আরশাদ সরদারের ছেলে। এবং শফিকুল একই এলকার মোকসেদ আলীর ছেলে। ঐ স্কুল ছাত্রীর মা অভিযোগ করে বলেন, মঙ্গলবার তার মেয়েকে মাঠে ডেকে নিয়ে আব্দুল মালেক ও রঙ্গন ওরফে শফিকুল তার শ্লীলতাহানীর চেষ্টা করে। পরে ভয়ে মেয়েটি কাউকে বিষয়টা জানায়নি। তার দাদী প্রথম বিষয়টা জানতে পারে। তিনি এর বিচার চাই। ঐ স্কুল ছাত্রী জানায়, মালেক ও শফিকুল তাকে মাঠে ডেকে নিয়ে যেয়ে খারাপ কাজ করার চেষ্টা করে। এ ব্যাপারে মিরপুর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আবুল কালাম জানান, ঐ স্কুল ছাত্রীর পরিবারের পক্ষ থেকে বৃহস্পতিবার (৩ অক্টোবর) সন্ধ্যায় মিরপুর থানায় একটি লিখিত অভিযোগ দেয়া হয়েছে। বিষয়টি খতিয়ে দেখা হচ্ছে। এ ঘটনার পর থেকে অভিযুক্ত ঐ দুইজন এলাকা থেকে পলাতক রয়েছে।

দৌলতপুরে বন্যার পানি বৃদ্ধি অব্যাহত 

রামকৃষ্ণপুর ও চিলমারী ইউনিয়নের পানিবন্দীদের মাঝে জেলা প্রশাসকের ত্রান বিতরণ

শরীফুল ইসলাম ॥ কুষ্টিয়ার দৌলতপুরে বন্যার পানি বৃদ্ধির গতি যেন থামছেই না। গতকাল বৃহস্পতিবারও পানি বৃদ্ধির খবর পাওয়া গেছে। সেই সাথে রামকৃষ্ণপুর ও চিলমারী ইউনিয়নের পানিবন্দী মানুষের দূর্ভোগ দূর্দশা বেড়েছে। গত ১৫দিন ধরে বন্যাকবলিত দুই ইউনিয়নের ১৫ হাজারেরও বেশী পরিবার পানিবন্দী অবস্থায় রয়েছে। তবে ঘরের মধ্যে কোমর পানির মধ্যে অবর্ননীয় কষ্টে বসবাস করছেন ৫ হাজারেরও বেশী পরিবার। যারা বিশুদ্ধ পানি ও খাবারের সংকটের মধ্যে রয়েছেন। এদিকে বন্যাকবলিতদের মাঝে ত্রান তৎপরাতা অব্যাহত রয়েছে। গতকালও বন্যার্তদের মাঝে পর্যাপ্ত পরিমাণ ত্রান বিতরণ করা হয়েছে। দৌলতপুর প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা সাইদুর রহমান জানান, গতকাল বৃহস্পতিবার দিনভর রামকৃষ্ণপুর ও চিলমারী ইউনিয়নের বন্যার্তদের মাঝে ত্রান বিতরণ করা হয়েছে। ত্রানসামগ্রীর মধ্যে ছিল রামকৃষ্ণপুর ইউনিয়নে সাড়ে ১৬ কেজি পরিমান ৫’শ প্যাাকেট শুকনো খাবার ও ৪ মেট্রিক টন চাল। চিলমারী ইউনিয়নে ৯’শ প্যাকেট শুকনো খাবার ও ৬ মেট্রিক টন চাল। জেলা প্রশাসক মো. আসলাম হোসেন, দৌলতপুর উপজেলা নির্বাহী অফিসার শারমিন আক্তার, দৌলতপুর প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা সাইদুর রহমান ও দু’জন নির্বাহী ম্যাজিষ্ট্রেট ত্রান বিতরণ কার্যক্রমে অংশ নেন। আজও ত্রান কার্যক্রম অব্যাহত থাকবে বলে জানিয়েছেন দৌলতপুর প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা সাইদুর রহমান। উল্লেখ্য পদ্মা নদীর পানি অস্বাভাবিকভাবে বৃদ্ধির ফলে চিলমারী ইউনিয়নের ১৮টি গ্রাম এবং রামকৃষ্ণপুর ইউনিয়নে ১৯টি গ্রামসহ ৩৭টি গ্রাম বন্যা কবলিত হয়ে সব মানুষ পানিবন্দী অবস্থায় রয়েছে। বন্যাকবলিত পানিবন্দী মানুষের দূর্ভোগ দূর্দশা চরম আকার ধারণ করেছে। বিশুদ্ধ পানি ও গো-খাদ্যের সংকট দেখা দিয়েছে। প্রায় ১৫০০ হেক্টর জমির মাসকলাইসহ বিভিন্ন ফসল পানিতে তলিয়ে নষ্ট হয়ে কৃষকদের প্রায় ১০ কোটি টাকার ক্ষতি হয়েছে। রামকৃষ্ণপুর ইউপি চেয়ারম্যান সিরাজ মন্ডল জানান, বন্যার পানি বৃদ্ধি অব্যাহত রয়েছে। গতকাল বৃহস্পতিবার রাত ৮পর্যন্ত পানি বৃদ্ধি পাওয়ার খবর জানিয়েছেন। তবে বন্যা কবলিতদের মাঝে ত্রান কার্যক্রম অব্যাহত রয়েছে বলেও জানান তিনি।

কুষ্টিয়ায় অভিনব কায়দায় অগ্রণী ব্যাংক মজমপুর শাখা হতে ইবি শিক্ষকের ৯০ হাজার টাকা চুরি

নিজ সংবাদ ॥ অভিনব কায়দায় কুষ্টিয়া অগ্রণী ব্যাংক মজমপুর শাখা হতে ৯০ হাজার টাকা চুরির ঘটনা ঘটেছে। ঘটনাটি ব্যাংকের মধ্যেই ঘটেছে। এ ঘটনায় ভুক্তভুগির পক্ষ থেকে কুষ্টিয়া মডেল থানায় একটি অভিযোগ পত্র দায়ের করা হয়েছে। ঘটনায় প্রকাশ থাকে যে, গতকাল বৃহস্পতিবার (৩ অক্টোবর) কুষ্টিয়া ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয় শাপলা ফোরামের সভাপতি প্রফেসর ড. মোঃ রেজওয়ানুল ইসলাম কুষ্টিয়া অগ্রণী ব্যাংক মজমপুর শাখায় তাঁর নিজ নামীয় হিসাবের ৯০ হাজার টাকার একটি চেক ক্যাশ করার জন্য তাঁর প্রতিনিধি হিসেবে  রিপন আলী নামের এক ব্যক্তিকে পাঠান। রিপন আলী বেলা ১টার দিকে ব্যাংকে উপস্থিত হলে ব্যাংকের মধ্যে অবস্থানরত অজ্ঞাতনামা একব্যক্তি সহযোগিতার মনোভাব দেখিয়ে রিপনের হাত থেকে চেকটি নিয়ে ক্যাশিয়ারের নিকট জমা দেয়।  ক্যাশিয়ারের নিকট হতে টাকা গ্রহণের ঠিক পূর্বে উক্ত ব্যক্তি রিপনকে বলে ম্যানেজার সাহেব তার কক্ষে আপনাকে ডাকছেন, আপনি দেখা করে আসুন। একথা শুনে রিপন ম্যানেজারের সাথে দেখা করতে গেলে, সেই সুযোগে অজ্ঞাত নামা ঐ ব্যক্তি ক্যাশিয়ারের নিকট থেকে ৯০ হাজার টাকা গ্রহণ করে ব্যাংক ত্যাগ করে। এদিকে রিপন ম্যানেজারের কক্ষে গেলে ম্যানেজার বলেন আমি তো আপনাকে ডাকেনি। একথা শুনে রিপন অতিদ্রুত ম্যানেজারের কক্ষ ত্যাগ করে ক্যাশিয়ারের নিকট টাকা চাইলে ক্যাশিয়ার বলেন আপনার চেকের টাকা তো আমি দিয়ে দিয়েছি। তখন চেকের প্রতিনিধি রিপন নিরূপায় হয়ে সঙ্গে সঙ্গে ঘটনাটি চেকের প্রকৃত মালিক প্রফেসর ড. মোঃ রেজওয়ানুল ইসলামকে জানালে তিনি দ্রুত ব্যাংকে এসে ব্যাংকের সিসি টিভি ক্যামেরার ফুটেজ দেখে রিপনের কথার সত্যতা পান। এদিকে চুরি হওয়া এ টাকার বিষয়ে প্রফেসর ড. মোঃ রেজওয়ানুল ইসলাম গতকাল কুষ্টিয়া মডেল থানায় একটি অভিযোগ পত্র দাখিল করেছেন।