পাটিকাবাড়ী ৪, ৫ ও ৬ নং ওয়ার্ড আওয়ামীলীগের ত্রি-বার্ষিক সম্মেলন অনুষ্ঠিত

নিজ সংবাদ ॥ কুষ্টিয়া সদর উপজেলার পাটিকাবাড়ী ইউনিয়নের ৪, ৫ ও ৬ নং ওয়ার্ড আওয়ামী লীগের ত্রি-বার্ষিক সম্মেলন অনুষ্ঠিত হয়েছে। গতকাল মঙ্গলবার দুপুরে পাটিকাবাড়ী ইউনিয়নের ফকিরাবাদ ৪নং ওয়ার্ড আওয়ামী লীগের সভাপতি উসমান আলীর সভাপতিত্বে ফকিরাবাদ মাদ্রাসা মাঠে অনুষ্ঠিত ত্রি-বার্ষিক সম্মেলন অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন কুষ্টিয়া জেলা আওয়ামী লীগের সদস্য ও উপজেলা আওয়ামী লীগের আইন বিষয়ক সম্পাদক এ্যাড. জিহাদুল ইসলাম ৷ ত্রি-বার্ষিক সম্মেলন অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথির বক্তব্য রাখেন পাটিকাবাড়ী ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতি সাইদুর রহমান বিশ্বাস, সাধারণ সম্পাদক ও ইউপি চেয়ারম্যান সফর উদ্দিন, সাংগঠনিক সম্পাদক কাবিল হোসেন, জেলা ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক সাদ আহমেদ, যুগ্ম-সাধারণ সম্পাদক হাসিবুল ইসলাম সুইট, ইউনিয়ন আ’লীগের ধর্ম বিষয়ক সম্পাদক মাহফুজুর রহমান উজ্জল, স্বেচ্ছাসেবক লীগের সভাপতি লিটন খান প্রমূখ ৷ প্রথম অধিবেশন শেষে পূর্বের কমিটিকে বিলুপ্ত ঘোষণা করে দ্বিতীয় অধিবেশনে আনুষ্ঠানিক ভাবে দলীয় নেতৃবৃন্দের সর্বসিদ্ধান্ত মোতাবেক ৪নং ওয়ার্ডে কামরুজ্জামান বিশ্বাসকে সভাপতি ও আবু বক্করকে সাধারণ সম্পাদক করে ৫১ সদস্য বিশিষ্ট কমিটি ঘোষণা করা হয় ৷ পরে পাটিকাবাড়ী ৫ ও ৬নং ওয়ার্ড আওয়ামী লীগের সভাপতি আব্দুল মালেক ও খোদাবক্সের যৌথ সভাপতিত্বে জাকজমকপূর্ণ পরিবেশে ইউপি পরিষদের হলরুমে ত্রি-বার্ষিক সম্মেলন অনুষ্ঠিত হয় ৷ ৫ ও ৬ নং ওয়ার্ডের প্রথম অধিবেশন  শেষে পূর্বের কমিটিকে বিলুপ্ত ঘোষণা করে দ্বিতীয় অধিবেশনে আনুষ্ঠানিকভাবে দলীয় নেতৃবৃন্দের সর্বসিদ্ধান্ত মোতাবেক পর্যায়ক্রমে ৫নং ওয়ার্ডে বিশিষ্ট ব্যবসায়ী আব্দুল মালেককে সভাপতি ও শেখ আবু সাঈদকে সাধারণ সম্পাদক এবং ৬নং ওয়ার্ডে খোদা বক্সকে সভাপতি ও নাসির উদ্দিনকে সাধারণ সম্পাদক করে উভয় ওয়ার্ডেই ৫১ সদস্য বিশিষ্ট কমিটি  ঘোষণা করা হয় ৷ অনুষ্ঠান পরিচালনা করেন পাটিকাবাড়ী ইউনিয়ন যুবলীগের সাধারণ সম্পাদক শাখাওয়াত হোসেন ৷

দুর্নীতিবাজরা দলের দোহাই দিয়ে ছাড় পাবে না – হানিফ

ঢাকা অফিস ॥ জননেত্রী শেখ হাসিনা যেকোন ধরনের অন্যায় দুর্নীতির বিরুদ্ধে কঠোর অবস্থানে আছে। সেটা যুবলীগ হউক, আওয়ামীলীগ হউক আর ছাত্রলীগ হউক বা অন্য দলের হউক যে দুর্নীতিবাজ সে সমাজে চোখে অপরাধী। অপরাধীর কোন দল নেই। যে সন্ত্রাসী সে সমাজের চোখে অপরাধী। এ ধরনের অপরাধীদের চিহ্নিত করা হচ্ছে এবং যাদের বিরুদ্ধে সুর্নিদিষ্ট অভিযোগ প্রমানিত হবে তাদের বিরুদ্ধে কঠোর আইনী ব্যবস্থা নেয়া হবে। কোন দুর্নীতিবাজ দলের নয়। দলের দোহাই দিয়ে কেউ ছাড় পাবে না বলে মন্তব্য করেছেন আওয়ামীলীগের যুগ্ম সাধারন সম্পাদক মাহবুবুল আলম হানিফ । মঙ্গলবার সকাল সাড়ে ১০টায় সুনামগঞ্জ সার্কিট হাউসে সুনামগঞ্জ জেলা আওয়ামীলীগে উদ্যোগে আয়োজিত প্রতিনিধি সম্মেলনে যাওয়ার আগে সাংবাদিকদের সাথে আলাপকালে তিনি এ কথা বলেন। হানিফ বলেন, ক্যাসিনো হচ্ছে জুয়াড় আসর। এর সঙ্গে ক্লাব জড়িত। এর সঙ্গে কোন রাজনৈতিক দল জড়িত না। কিন্তু দুর্ভাগ্যজনকভাবে এটাকে দলের উপর চাপানো হচ্ছে। যুবলীগের ২/১ জন নেতা এর সঙ্গে জড়িত থাকতে পারে। কিন্তু এটা তো পুরো যুবলীগের কোন বিষয় না এটা ক্লাবের বিষয়। এখানে যুবলীগ ছাড়াও বিএনপির অনেক নেতাকর্মী জড়িত আছে। বিএনপির মির্জা আব্বাস,সাদেক হোসেন খোকা, মোসাদ্দেক হোসেন ফালুর সময় থেকে ক্লাবে জুয়ার প্রচলন শুরু হয়েছে। যারাই এর সঙ্গে জড়িত হয় তারাই সবসময় সরকারের আনুকল্য নেয়ার জন্য সরকারী দলের ব্যানার ব্যবহার করতে চায় তাদের অপকর্ম জায়েজ করার জন্য। দেখেছি যারাই এখন পর্যন্ত আটক হয়েছে এই সবগুলোই বিএনপি থেকে আসা। এসময় উপস্থিত ছিলেন ,কেন্দ্রীয় নেতা ও সাবেক শিক্ষা মন্ত্রী নুরুল ইসলাম নাহিদ, কেন্দ্রীয় আওয়ামীলীগের সাংগাঠনিক সম্পাদক মিসবাহ উদ্ধিন সিরাজ, সাংসদ মুহিবুর রহমান মানিক, মোয়াজ্জেম হোসেন রতন,শামিমা শাহরিয়ার,জেলা আওয়ামীলীগ সাধারন সম্পাদক ব্যারিষ্টার এনামুল কবির ইমনসহ আওয়ামীলীগ নেতৃবৃন্দ।

রোহিঙ্গা ইস্যুতে আমরা বাংলাদেশের পাশে থাকবো – জুলিয়া নিবলেট

ঢাকা অফিস ॥ বাংলাদেশে নিযুক্ত অস্ট্রেলিয়ার হাইকমিশনার জুলিয়া নিবলেট বলেছেন, ‘অস্ট্রেলিয়া দ্বিপাক্ষিক, আঞ্চলিক ও আন্তর্জাতিকভাবে বাংলাদেশের সঙ্গে ‘দৃঢ়ভাবে’ কাজ চালিয়ে যেতে থাকবে এবং ভবিষ্যতে দুদেশের মধ্যেকার সহযোগিতার সম্পর্ক আরো জোরদারের বিশাল সম্ভাবনা রয়েছে। এমন আরো অনেক ক্ষেত্র রয়েছে যেখানে অস্ট্রেলিয়া বাংলাদেশের সঙ্গে দৃঢ়ভাবে কাজ করতে পারে।’ বাংলাদেশ-অস্ট্রেলিয়ার ভবিষ্যৎ সম্পর্ককে সংক্ষেপে তিনটি শব্দ দিয়ে ব্যাখ্যা করেন হাইকমিশনার। সেগুলো হলো- প্রবৃদ্ধির সম্ভাবনা, বাস্তবসম্মত ও জনবান্ধব (উদ্যোগ)। মঙ্গলবার রাজধানীতে কসমস সংলাপের অ্যাম্বাসেডর লেকচার সিরিজের আওতায় ‘বাংলাদেশ-অস্ট্রেলিয়া সম্পর্ক: ভবিষ্যতের জন্য পূর্বাভাস’ শীর্ষক এক সংলাপে হাইকমিশনার এসব কথা বলেন। বাংলাদেশি ব্যবসায়ী গোষ্ঠী কসমস গ্র“পের জনহিতকর সংস্থা কসমস ফাউন্ডেশন রাজধানীর সিক্স সিজন হোটেলে এ সংলাপের আয়োজন করে। ন্যাশনাল ইউনিভার্সিটি অব সিঙ্গাপুরের ইনস্টিটিউট অব সাউথ এশিয়ান স্টাডিজের (আইএসএএস) প্রিন্সিপাল রিসার্চ ফেলো ড. ইফতেখার আহমেদ চৌধুরীর সভাপতিত্বে সংলাপে স্বাগত বক্তব্য রাখেন কসমস ফাউন্ডেশনের চেয়ারম্যান এনায়েতুল্লাহ খান। রোহিঙ্গা ইস্যুতে তিনি বলেন, রোহিঙ্গা সংকটের দীর্ঘমেয়াদী এবং টেকসই সমাধানের জন্য তারা বাংলাদেশ, মিয়ানমার, অন্যান্য আঞ্চলিক অংশীদার ও বিস্তৃত আন্তর্জাতিক সম্প্রদায়ের সঙ্গে কার্যক্রম চালিয়ে যাবে। তবে ‘রোহিঙ্গা ইস্যুতে আমরা বাংলাদেশের পাশে থাকব।’ হাইকমিশনার জানান, রোহিঙ্গাদের ওপর নির্যাতন ও অন্যায় কাজের জন্য দায়ীদের বিরুদ্ধে অস্ট্রেলিয়া জাতিসংঘের রেজুলেশন ও জবাবদিহিতা আদায় কার্যক্রমে শক্তভাবে সমর্থন দিয়ে যাবে। সংলাপে অন্যদের মধ্যে বাংলাদেশ নিযুক্ত ব্রিটিশ হাইকমিশনার রবার্ট চ্যাটারটন ডিকসন, কানাডার হাইকমিশনার বেনোইট প্রিফোনতাইনে, ব্রাজিলের রাষ্ট্রদূত জোয়াও তাবাজারা ডি অলিভিয়েরা জুনিয়র, সাবেক পররাষ্ট্র সচিব শমসের মবিন চৌধুরী ও মো. তৌহিদ হোসেন, ব্যবসায়ী নেতা সালাউদ্দিন কাশেম খান প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন। সংলাপে আন্তর্জাতিক বিষয়ে বিশেষজ্ঞরা রোহিঙ্গা সঙ্কট, অভিবাসন ও জলবায়ু পরিবর্তনসহ বিশ্বব্যাপী ইস্যুতে আলোকপাত করা ছাড়াও বাংলাদেশ ও অস্ট্রেলিয়ার মধ্যে অর্থনৈতিক ও উন্নয়ন সহযোগিতা আরও গভীর করার উপায়গুলো তুলে ধরেন। বাংলাদেশকে স্বীকৃতি দেয়া প্রথম দিকের দেশগুলোর একটি ছিল অস্ট্রেলিয়া এবং গত দশকগুলো ধরে দুদেশের মধ্যে ভালো ও বন্ধুত্বপূর্ণ সম্পর্ক বিরাজ করছে এবং তা ক্রমবর্ধমান রয়েছে। বাংলাদেশের সঙ্গে অস্ট্রেলিয়ার দ্বিপক্ষীয় সম্পর্ক উন্নতির পথে রয়েছে এবং বাংলাদেশের অর্থনীতিতে টেকসই প্রবৃদ্ধির ফলে দুদেশের মধ্যকার বাণিজ্য ২০০ কোটি অস্ট্রেলিয়ান ডলার ছাড়িয়ে গেছে।বাংলাদেশি পণ্য ২০০৩ সালের ১ জুলাই থেকে অস্ট্রেলিয়ায় শুল্ক ও কোটামুক্ত প্রবেশাধিকার সুবিধা পাচ্ছে। সেই সাথে বাংলাদেশ জ্বালানি, টেলিকম, পরিবহন, বস্ত্র, শিক্ষা ও খনি খাতে অস্ট্রেলিয়ান কোম্পানিগুলোকে বাণিজ্যিক সুযোগ দিচ্ছে।অস্ট্রেলিয়ার বিশ্বমানের শিক্ষা ব্যবস্থা হাজারো বাংলাদেশি শিক্ষার্থীর জন্য তৃতীয় সর্বোচ্চ জনপ্রিয় গন্তব্যে পরিণত হয়েছে। বর্তমানে প্রায় ৫০ হাজার বাংলাদেশি বংশোদ্ভূত মানুষ অস্ট্রেলিয়ায় বসবাস করছেন এবং তাদের সংখ্যা সাম্প্রতিক বছরগুলোতে বাড়ছে।

কুষ্টিয়ায় জাতীয় কৃমি নিয়ন্ত্রণ সপ্তাহ’র উদ্বোধন

কুষ্টিয়ায় জাতীয় কৃমি নিয়ন্ত্রন সপ্তাহ উদ্বোধন করা হয়েছে। গতকাল মঙ্গলবার সকাল ৯টায় শহরের চাঁদ সুলতানা মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীদের কৃমিনাশক ট্যাবলেট খাইয়ে এ সপ্তাহের উদ্বোধন করেন জেলা প্রশাসক আসলাম হোসেন ও কুষ্টিয়ার সিভিল সার্জন সিভিল সার্জন ডাঃ রওশন আরা বেগম। এ সময় জেলা ইসলামিক ফাউন্ডেশন উপ-পরিচালক শামসুল হক, জেলা প্রাথমিক শিক্ষা অফিসার তবিবর রহমান, সদর উপজেলা আওয়ামীলেিগর সভাপতি এ্যাড.আখতারুজ্জামান মাসুম, বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষিকা নাসিরা নাসরিনসহ শিক্ষার্থীরা উপস্থিত ছিলেন। সার্বিক সহযোগীতায় ছিলেন কুষ্টিয়ার সিভিল সার্জন অফিসের সিনিয়র স্বাস্থ্য শিক্ষা কর্মকর্তা আব্দুর রহমান ও জুনিয়র স্বাস্থ শিক্ষা কর্মকর্তা শামছুল আলম। ১-৭ অক্টোবর সারাদেশে একযোগে উদযাপিত হবে জাতীয় কৃমি নিয়ন্ত্রণ সপ্তাহ-২০১৯। প্রাথমিক পর্যায়ের শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের পাশাপাশি ১০ম শ্রেণি পর্যন্ত সকল মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষার্থী ও স্কুল মাদ্রাসা বহির্ভুত, পথশিশু, শ্রমজীবী শিশুদেরকে একই নিয়মে বিদ্যালয়ে উপস্থিতির মাধ্যমে সকলকে এক ডোজ কৃমি নাশক ট্যাবলেট খাওয়ানো হবে জানিয়েছে স্বাস্থ্য বিভাগ। সংবাদ বিজ্ঞপ্তি

আলমডাঙ্গায় দলীয় নেতাকর্মিদের সাথে এমপি ছেলুন জোয়ার্দ্দারের মত বিনিময়

আলমডাঙ্গা অফিস ॥ চুয়াডাঙ্গা- ১ আসনের সংসদ সদস্য জেলা আওয়ামীলীগের সভাপতি বীর মুক্তিযোদ্ধা সোলায়মান হক জোয়ার্দ্দার ছেলুন আলমডাঙ্গায় দলীয় নেতা কর্মিদের সাথে মত বিনিময় করেছেন। গতকাল বেলা সাড়ে ১১টার দিকে বধ্যভু’মি এলাকায় এ মতবিনিময় সভা করেন। এ সময় এমপি ছেলুন জোয়ার্দ্দার বলেন, একটি দলের প্রাণ হলো নেতা কর্মি। যে দলের কর্মি নেই সে দল কোন দল না। আজকে আওয়ামী লীগের হাজার হাজার নেতা কর্মি আছে বলেই কোন অপশক্তিই আওয়ামীলীগকে দাবিয়ে রাখতে পারেনা। তাই সকলকে বলি তৃণমুল পর্যায়ে দলকে সুসংগঠিত করতে সবাইকে ঐক্যবদ্ধ হতে হবে। আজকে আওয়ামীলীগের মুল শক্তি তৃণমুল পর্যায়ে সংগঠন। নেতা কর্মিরা ভেদাভেদ ভুলে ঐক্যবদ্ধভাবে ৩ অক্টোবর জনসভায় যোগদান করে সকল অপশক্তির মোকাবেলা করার জন্য প্রস্তুত থাকতে হবে। মতবিনিময়কালে উপস্থিত ছিলেন জেলা আওয়ামীলীগের সহসভাপতি খুস্তার জামিল, ভারপ্রাপ্ত উপজেলা চেয়ারম্যান খন্দকার সালমুন আহম্মেদ ডন,উপজেলা আওয়ামীলীগের ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক ইয়াকুব আলী মাষ্টার, পৌর আওয়ামীলীগের সভাপতি আবু মুছা, সম্পাদক সিরাজুল ইসলাম, মহিলা কলেজের অধ্যক্ষ সালাউদ্দিন টিপু, বিআরডিবি চেয়ারম্যান মহিদুল ইসলাম মুহিদ, প্রভাষক আব্দুল কুদ্দুস, ২নং ওয়ার্ড সভাপতি জাহাঙ্গির হোসেন, খন্দকার মজিবুল হক, খবির উদ্দিন, ওয়াজেদ আলী, জেলা আওমীলীগের সদস্য ও হারদী ইউ পি চেয়ারম্যান নুরুল ইসলাম, কালিদাসপুর ইউপি চেয়ারম্যান নুরুল ইসলাম নুরু, দেলোয়ার হোসেন, উপজেলা আওয়ালীগের সহসভাপতি বিশিষ্ট ব্যবসাযী লিয়াকত আলি লিপু মোল্লা, বীর মুক্তিযোদ্ধা হামিদুল ইসলাম আজম, কালিদাসপুর ইউনিয়ন আওমীলীগের আহবায়ক জালাল উদ্দিন,কুমারী ইউপি চেয়ারম্যান আবু সাঈদ পিন্টু, জেলা যুবলীগের সদস্য ও পৌর কাউন্সিলর মতিয়ার রহমান ফারুক, আলমডাঙ্গা সরকারী কলেজ ছাত্রলীগের সভাপতি আশরাফুল হক, পৌর আওমীলীগের প্রচার সম্পাদক রেজাউল হক তবা, ছাত্রলীগের সাবেক সম্পাদক মিজানুর রহমান মিজান, যুবলীগ নেতা প্রশান্ত বিশ্বাস, সাইফুর রহমান পিন্টু প্রমূখ।

চিকিৎসক না হয়েও অপারেশন করেন পারভেজ

কুষ্টিয়ার মিরপুরে অপারেশন থিয়েটারেই গৃহবধূর করুণ মৃত্যু

মিরপুর প্রতিনিধি ॥ কুষ্টিয়া মিরপুরের উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স সংলগ্ন সাহাদালী ক্লিনিকে এক গৃহবধুর করুণ মৃত্যু হয়েছে। সোমবার রাত ১১টার দিকে অপারেশন থিয়েটারেই মুত্যু হয় ইভা (১ঁ৭) নামের ওই নারীর। এমবিবিএস ও সার্জন না হওয়ায় পারভেজ নামের এক ভুয়া চিকিৎসক অপারেশন করায় এ ঘটনা ঘটেছে বলে জানা গেছে। ঘটনার পর থেকে পলাতক আছেন ক্লিনিক মালিক ও কথিত ওই চিকিৎসক। জানা গেছে, মিরপুর উপজেলার ফুলবাড়িয়া গ্রামের নান্টু মিয়ার স্ত্রী গর্ভবতি ইভা খাতুনকে ভর্তি করা হয় শাহাদালী ক্লিনিকে। রাতে তাকে অস্ত্রপচারের জন্য থিয়েটারে নেয়া হয়। রাত ১১টার দিকে চিকিৎসকের বদলে পারভেজ নামের এক ব্যক্তি এমবিবিএস পরিচয় দিয়ে তাকে সিজার করেন। ভুল অপারেশনে থিয়েটারেই ইভার মৃত্যু হয়। বিষয়টি বুঝতে পেরে ক্লিনিক কর্তৃপক্ষ দ্রুত কুষ্টিয়া জেনারেল হাসপাতালে রেফার্ড করে। বিষয়টি জানাজানি হলে স্থাণীয় লোকজন ক্লিনিক ঘেরাও করে। এ সময় পালিয়ে যায় ক্লিনিক মালিক নাজমূল ও মেজবাউল পালিয়ে যায়। ইভার স্বামীর নান্টুর অভিযোগ, পারভেজ একজন ভূয়া ও কথিত চিকিৎসক। সে এমবিবিএস চিকিৎসক পরিচয দিয়ে জেলার বিভিন্ন ক্লিনিকে অপারেশন করে। তার ভুলের কারনে আমার স্ত্রী মারা গেছে। বিষয়টির কঠোর ব্যবস্থা নেয়াসহ শাস্তির দাবি জানান। কুষ্টিয়ার মিরপুর থানার অফিসার ইনচার্জ আবুল কালাম বলেন, বিষয়টি নিয়ে থানায় কেউ অভিযোগ দিতে আসেনি। আসলে ব্যবস্থা নেয়া হবে। স্থানীয়রা জানান, পারভেজ খুবই প্রভাবশালী। সে চিকিৎসক না হয়েও অপারেশন করে থাকে। থানা পুলিশ থেকে নেতাদের ম্যানেজ করে চলেন তিনি। এ কারনে বারবার এমন ঘটনা ঘটলেও তার বিরুদ্ধে কোন ব্যবস্থা নেয়া হয়। কয়েক দিন আগেও পারভেজের ভুল অপারেশনে কুষ্টিয়ার কুমারখালী নোভা ক্লিনিকে এক  গৃহবধুু মারা যায়। কুষ্টিয়ার স্বাচীপ নেতা ডা. আমিনুল হক রতন বলেন, পারভেজ নামের কোন এমবিবিএস চিকিৎসক নেই জেলায়। সে গোপনে ভুয়া পরিচয় দিয়ে এসব কাজ করে। তার বিরুদ্ধে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেয়া হবে।

এ্যাডোর আয়োজনে আন্তর্জাতিক প্রবীণ দিবস পালন

পল্লী কর্ম-সহায়ক ফাউন্ডেশন (পিকেএসএফ) এর আর্থিক সহায়তায় অ্যাক্শন্ ফর হিউম্যান ডেভেলপমেন্ট অরগানাইজেশন “এ্যাডো” কর্তৃক জুলাই’২০১৮ সাল থেকে কুষ্টিয়ার ভেড়ামারা উপজেলার জুনিয়াদহ ইউনিয়নে প্রবীণ জনগোষ্ঠীর জীবনমান উন্নয়ন কর্মসূচি বাস্তবায়িত হয়ে আসছে। অত্র ইউনিয়নের ১৫ টি গ্রামে ৯৫৩৮টি খানাই ৩৯৯৮৭ জন লোক বসবাস করে, যার মধ্যে তালিকাভুক্ত প্রবীনের সংখ্যা ১৬৫০ জন। প্রবীণদের সুরক্ষা ও অধিকার নিশ্চিতের পাশাপাশি বার্ধক্যের বিষয়ে এলাকায় গন সচেতনতা সৃষ্টির লক্ষ্যে গতকাল ১ অক্টোবর জুনিয়াদহ ইউনিয়নের পরানখালীতে প্রবীনদের র‌্যালী ও এ্যাডোর প্রবীণ কেন্দ্র ঘর প্রাঙ্গনে আলোচনা সভার আয়োজন করা হয়। উক্ত র‌্যালি ও আলোচনা সভায় প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন মোঃ রেজাউল আহসান ৫ নং ওয়ার্ড প্রবীণ কমিটির সভাপতি। প্রধান অতিথি ছিলেন জুনিয়াদহ ইউপি চেয়ারম্যান মোঃ শাহেদ আহমেদ শওকত। বিশেষ অতিথি ছিলেন রনজিত কুমার সরকার, উপ-পরিচালক এম.আর.এ , সুমন চাকমা, সিনিয়র সহকারী পরিচালক, এম.আর.এ. এবং আরও উপস্থিত ছিলেন জে.এম. নাজিমুদ্দীন আক্কেল প্রতিষ্ঠাতা ও নিবার্হী পরিচালক এ্যাডো। এছাড়াও অত্র এলাকার গন্যমান্য ব্যাক্তিবর্গ। অনুষ্ঠানে সকল অতিথি ও এলাকা গন্যমান্য ব্যক্তিবর্গ এ্যাডো কর্তৃক গৃহিত বিভিন্ন কর্মসূচির ভূয়সী প্রসংসা করেন। প্রধান অতিথি তার বক্তব্যে প্রবীন কর্মসূচির আওতায় জুনিয়াদহ ইউনিয়নে সরকারের পাশাপাশি প্রতিমাসে ১০০জন প্রবীণকে নিয়মিত বয়স্কভাতা প্রদানে সন্তোষ প্রকাশ করেন। সংস্থার নির্বাহী পরিচালক তার বক্তব্যে চলতি অর্থ বছরে প্রবীণদের জীবনমান উন্নয়নে গৃহীত বিভিন্ন কর্মসূচির বিস্তারিত বর্ননা দেন। উক্ত অনুষ্ঠান উপস্থাপনায় ছিলেন সংস্থার সমৃদ্ধি কর্মসূচির এস.ডি.ও. মোঃ সোহেল রানা। অনুষ্ঠানটি পরিচালনা করেন প্রবীণ জনগোষ্ঠীর জীবনমান উন্নয়ন কর্মসূচির প্রোগ্রাম অফিসার ইসতিকার হোসেন (শাকিল)। সার্বিক সহযোগীতায় ছিলেন সমৃদ্ধির সকল কর্মকর্তা ও কর্মচারীবৃন্দ। সংবাদ বিজ্ঞপ্তি

ঢাকার আট থানার ওসি বদল

ঢাকা অফিস ॥ ক্যাসিনোকান্ডে আলোচিত মতিঝিল থানাসহ ঢাকার আট থানার ওসিকে বদলে দিয়েছে পুলিশ প্রশাসন। পুলিশ সদর দপ্তর থেকে মঙ্গলবার এসব বদলির আদেশ জারি করা হয় মতিঝিল থানার ওসি মো. ওমর ফারুককে থানা থেকে সরিয়ে পাঠানো হয়েছে ঢাকা মহানগর গোয়েন্দা পুলিশের উত্তর বিভাগে। একইভাবে মিরপুর মডেল থানার ওসি মো. দাদন ফকিরকে মহানগর গোয়েন্দা পুলিশের দক্ষিণ বিভাগ এবং কোতোয়ালি থানার ওসি মো. সাহিদুর রহমানকে মহানগর গোয়েন্দা পশ্চিম বিভাগে বদলি করা হয়েছে। সেপ্টেম্বরের মাঝামাঝি সময়ে ঢাকার মতিঝিল এলাকায় বেশ কয়েকটি ক্রীড়া ক্লাবে র‌্যাবের অভিযানে অবৈধভাবে ক্যাসিনো চালানোর ঘটনা ধরা পড়ে। পুলিশের নাকের ডগায় কীভাবে এসব জুয়ার আসর চলছিল, সেই প্রশ্ন তখন ওঠে। মতিঝিল থানা থেকে ওমর ফারুককে সরিয়ে ওসির দায়িত্বে আনা হয়েছে কলাবাগান থানার ওসি মোহাম্মদ ইয়াসির আরাফাত খানকে। উত্তরা-পূর্ব থানার পুলিশ পরিদর্শক (তদন্ত) পরিতোষ চন্দ্র কলাবাগান থানার ওসির দায়িত্ব পেয়েছেন। মিরপুর থানার ওসির দায়িত্বে এসেছেন খিলক্ষেত থানার ওসি মো. মোস্তাজিরুর রহমান। আর বনানী থানার পুলিশ পরিদর্শক (তদন্ত) মোহাম্মদ বোরহান উদ্দিনকে খিলক্ষেত থানার ওসি হিসেবে বদলি করা হয়েছে। কোতোয়ালি থানার ওসির দায়িত্ব পেয়েছেন শ্যামপুর থানার ওসি মো. মিজানুর রহমান। আর সবুজবাগ থানার পুলিশ পরিদর্শক (তদন্ত) মো. মফিজুল আলমকে শ্যামপুর থানার ওসির দায়িত্বে পাঠানো হয়েছে। চাকরি দেওয়ার কথা বলে এবং বিয়ের প্রলোভন দেখিয়ে এক নারীকে ধর্ষণের অভিযোগে পল্টন থানার ওসি মাহমুদুল হককে সোমবারই সাময়িক বরখাস্তের আদেশ দেওয়া হয়েছিল। মঙ্গলবার পল্টন থানার ওসির দায়িত্ব দেওয়া হয়েছে ভাটারা থানার ওসি মো. আবু বকর সিদ্দিককে। আর ভাটারা থানার ওসির দায়িত্ব পেয়েছেন বিমানবন্দর থানার পুলিশ পরিদর্শক (তদন্ত) মোক্তারু জ্জামান।

দৌলতপুর কলেজে অনার্স প্রথম বর্ষের ক্লাস উদ্বোধন

দৌলতপুর প্রতিনিধি ॥ কুষ্টিয়ার দৌলতপুর কলেজে ২০১৯-২০২০ শিক্ষা বর্ষের অনার্স (সম্মান) প্রথম বর্ষের ক্লাস উদ্বোধন করা হয়েছে। গতকাল মঙ্গলবার সকাল ১০টায় দৌলতপুর কলেজ মিলনায়তনে অনার্স প্রথম বর্ষের ক্লাস আনুষ্ঠানিকভাবে উদ্বোধন করেন দৌলতপুর কলেজের অধ্যক্ষ মো. ছাদিকুজ্জামান খান। এসময় দৌলতপুর কলেজের উপাধ্যক্ষ মো. আজিজুল হকসহ বিভিন্ন বিভাগের বিভাগীয় প্রধান ও শিক্ষকবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন। ক্লাস উদ্বোধনকালে দৌলতপুর কলেজের অধ্যক্ষ মো. ছাদিকুজ্জামান খান বলেন, উচ্চ শিক্ষা গ্রহণের জন্য বাইরে না গিয়ে দৌলতপুর কলেজে সে শিক্ষা গ্রহণ সম্ভব। দেশের ৮টি শিক্ষা প্রতিষ্ঠান মডেল কলেজের স্বীকৃতি পেয়েছে তার মধ্যে দৌলতপুর কলেজ অন্যতম। শিক্ষার অনুকুল পরিবেশ ও মানসম্মত শিক্ষাদান এই কলেজ থেকে দেওয়া হয় বিধায় কলেজটি মডেল কলেজে রুপান্তর হয়েছে। তাই উচ্চ শিক্ষা গ্রহণের ক্ষেত্রে আমি মনে করি দৌলতপুর কলেজ অন্যতম একটি মডেল বিদ্যাপিঠ। শেষে তিনি উপস্থিত বিভিন্ন বিভাগের শিক্ষার্থীদের হাতে ফুল দিয়ে বরণ শেষে অনার্স প্রথম বর্ষের ক্লাসের আনুষ্ঠানিক উদ্বোধন ঘোষণা করেন। এর আগে দৌলতপুর কলেজের ব্যবস্থাপনা বিভাগের কৃতি শিক্ষার্থী তাসনোভা ইয়াসমিন অনার্স তৃতীয় বর্ষে কৃতিত্ব অর্জন করায় তাকে জাতীয় বিশ^বিদ্যালয় সম্মাননা পুরস্কার দিলে সে পুরস্কার আনুষ্ঠানিকভাবে তুলে দেন দৌলতপুর কলেজের অধ্যক্ষ মো. ছাদিকুজ্জামান খান।

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার জাতিসংঘ কর্তৃক দুটি পুরস্কার প্রাপ্তি

চুয়াডাঙ্গায় আওয়ামী লীগের জনসভা উপলক্ষ্যে সংবাদ সম্মেলন

চুয়াডাঙ্গা অফিস ॥ প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা জাতিসংঘ কর্তৃক টিকাদান কর্মসূচিতে ‘ভ্যাকসিন হিরো’ এবং যুবকদের দক্ষতা বৃদ্ধির স্বীকৃতি স্বরুপ ‘চ্যাম্পিয়ন অব স্কিল ডেভেলমেন্ট ফর ইয়ুথ’ পুরস্কার লাভ করায় চুয়াডাঙ্গা জেলা আওয়ামী লীগের জনসভা উপলক্ষে সংবাদ সম্মেলন অনুষ্ঠিত হয়েছে। গতকাল মঙ্গলবার বিকেল সাড়ে ৪টায় শহরের জেলা ইটভাটা মালিক সমিতির কার্যালয়ে এ সংবাদ সম্মেলন অনুষ্ঠিত হয়। সংবাদ সম্মেলনে লিখিত বক্তব্য পাঠ করেন এবং সাংবাদিকদের বিভিন্ন প্রশ্নের উত্তর দেন জেলা আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক রিয়াজুল ইসলাম জোয়ার্দ্দার টোটন। সংবাদ সম্মেলনে জেলা আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি নাসির উদ্দিন আহম্মেদ ও খুসতার জামিল, যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক অ্যাড. মহ: শামসুজ্জোহা, সাংগঠনিক সম্পাদক মুন্সী আলমগীর হান্নান ও মাসুদ-উজ্জামান লিটু, চুয়াডাঙ্গা পৌর আওয়ামী লীগের ভারপ্রাপ্ত সাধারণ সম্পাদক আলাউদ্দিন হেলা ও জেলা পরিষদ ১নং ওয়ার্ড সদস্য শহিদুল ইসলাম সাহান উপস্থিত ছিলেন। সংবাদ সম্মেলনে লিখিত বক্তব্য জানানো হয়,  আগামী বৃহস্পতিবার চুয়াডাঙ্গা বড় বাজার শহীদ হাসান চত্বরে বেলা ৩টায় জেলা আওয়ামী লীগের উদ্দ্যোগে জনসভার আয়োজন করা হয়েছে। জনসভায় প্রধান অতিথি হিসেবে জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি ও চুয়াডাঙ্গা-১ আসনের সংসদ সদস্য বীর মুক্তিযোদ্ধা সোলায়মান হক জোয়ার্দ্দার ছেলুন বক্তব্য রাখবেন। অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করবেন জেলা আওয়ামী লীগের সহসভাপতি ও চুয়াডাঙ্গা-২ আসনের সংসদ সদস্য হাজী আলী আজগার টগর। এছাড়া, জেলা আওয়ামী লীগ, উপজেলা আওয়ামী লীগ, পৌরসভা ও ইউনিয়ন পর্যায়ের নেতৃবৃন্দ ও অঙ্গ সংগঠনের নেতৃবৃন্দ বক্তব্য রাখবেন।  এই সমাবেশ থেকে বিএনপি-জামায়াতসহ সকল স্বাধীনতা বিরোধী শক্তিকে প্রতিরোধ করার লক্ষ্যে জঙ্গিবাদ ও মৌলবাদকে নির্মূল করার জন্য এই সমাবেশ থেকে কর্মসূচি ঘোষনা করা হবে। এছাড়াও দলের অভ্যন্তরে ঘাপটি মেরে থাকা কিছু নেতা দলবিরোধী কর্মকান্ড চালিয়ে যাচ্ছে এবং বিএনপি-জামায়াতের আশ্রয়-প্রশ্রয়ের কারণে দলের অভ্যন্তরে বিশৃঙ্খলা সৃষ্টি করে দলকে ক্ষতিগ্রস্থ করতে চাই। তারা ইতিমধ্যে বিভিন্ন জায়গায় কমিটি গঠনের নামে দলকে দ্বিখন্ডিত করতে চাই এবং এইসব নেতারা ইতিমধ্যে অযোগ্যতার প্রমাণ দিয়েছে। তাই জেলা আওয়ামী লীগ রাজাকারের সন্তানমুক্ত ও অযোগ্য লোকদের আওয়ামী লীগ থেকে বিতাড়িত করতে চাই। সংবাদকর্মীদের বিভিন্ন প্রশ্নের উত্তরে রিয়াজুল ইসলাম জোয়ার্দ্দার আরো বলেন, জনসভায় ৩০ হাজার নেতাকর্মীসহ সাধারণ মানুষ উপস্থিত থাকবে বলে আশা করছি। এজন্য রাস্তায় চলাচলে সাধারণ মানুষের অসুবিধা হবে। এ জন্য পুলিশের ট্রাফিক বিভাগের সাথে আলোচনা করে কিভাবে বিকল্প সড়কে যানবাহন চলাচল করা যায় সেবিষয়ে আলোচনা করা হবে। সাধারণ মানুষ কষ্ট পাবে না। দূর-দূরান্ত থেকে আসা নেতাকর্মীদের পরিবহনগুলো শহরের ৬টি স্পটে রাখার ব্যবস্থা করা হয়েছে। যেমন দৌলতদিয়াড় বিএডিসি গোডাউন, টাউন ফুটবল মাঠ, সরকারি  কলেজ মাঠ, ভিজে স্কুল মাঠ, পুরাতন স্টেডিয়াম ও পৌর কলেজ রোডে গাড়ি পার্কিং থাকবে। তিনি আরো বলেন, জেলা আওয়ামী লীগে সিনিয়র সহসভাপতি পদ বলে গঠনতন্ত্রে কোন পদ নেই। ওই নেতা বিভিন্ন স্থানে কমিটি করে বেড়াচ্ছেন। কেউ যদি গঠনতন্ত্রে বাইরে গিয়ে সাংগঠনিক কর্মকান্ড করেন তার বিরুদ্ধে শোকজ ও কেন্দ্রকে জানানো হবে। ১৫দিন আগে সদর উপজেলার সভাপতি-সম্পাদক পত্রিকায় এবিষয়ে একটি প্রেস রিলিজ দেন। এরপরে তিনি আর করেন নাই। ওই নেতা যাচ্ছেন তার সাথে আওয়ামী লীগের কেউ নেই। স্বেচ্ছাসেবক লীগ ও কৃষকলীগের কিছু মানুষ যাচ্ছে। চুয়াডাঙ্গা যুবলীগকে ক্যাসিনো যুবলীগ আখ্যা দিয়ে তিনি আরো বলেন, কিভাবে বড়লোক হওয়া যায় সে পথে গিয়ে রাজনীতিকে কুলষিত করেছে। রাজনীতিতে ধাপে ধাপে এগুতো হয়, আর সে পথ পরিহার করে অন্য পথ অবলম্বন করেছে।

আলমডাঙ্গায় আন্তর্জাতিক প্রবীন দিবস পালিত

আলমডাঙ্গা অফিস ॥ আলমডাঙ্গা উপজেলা প্রশাসন ও সমাজ সেবা অধিদপ্তরের উদ্যোগে আন্তর্জাতিক প্রবীন দিবস পালিত হয়েছে। গতকাল সকাল ১০ টার দিকে উপজেলা পরিষদ চত্তর থেকে র‌্যালী বের হয়ে শহরের প্রধান সড়ক প্রদক্ষিন শেষে সংক্ষিপ্ত আলোচনা সভায় সভাপতিত্ব করেন উপজেলা নির্বাহী অফিসার মোঃ লিটন আলী। প্রধান অতিথি ছিলেন ভারপ্রাপ্ত উপজেলা চেয়ারম্যান এ্যাডঃ খন্দকার সালমুন আহম্মেদ ডন। স্বাগত বক্তব্য রাখেন উপজেলা সমাজ সেবা অফিসার আফাজ উদ্দিন। অন্যদের মধ্যে বক্তব্য রাখেন সাবেক মুক্তিযোদ্ধা কমান্ডার বীর মুক্তিযোদ্ধা আব্দুল কুদ্দুস, প্রেসক্লাবের সভাপতি খন্দকার শাহ আলম মন্টু, সম্পাদক বীর মুক্তিযোদ্ধা হামিদুল ইসলাম আজম, জালাল উদ্দিন, যুব উন্নয়ন কর্মকর্তা আনিসুজ্জামান, উপজেলা শিক্ষা অফিসার শামসুজ্জোহা, প্রানী সম্পদ কর্মকর্তা ডাঃ আব্দুল্লাহিল কাফি, মৎস্য কর্মকর্তা ফাতেমা কামরুন্নাহার আঁখা, প্রকল্প কর্মকর্তা এনামুল হক, আব্দুল লতিফ, মাহবুবুল ইসলাম, মিজানুর রহমান, জামাল উদ্দিন, সহকারি শিক্ষা অফিসার আশরাফুল ইসলাম প্রমুখ।

ঘুষ নেওয়া ও ভিক্ষাবৃত্তির মধ্যে কোনো পার্থক্য নেই – দুদক চেয়ারম্যান

ঢাকা অফিস ॥ ঘুষ নেওয়া ও ভিক্ষাবৃত্তির মধ্যে কোনো পার্থক্য নেই মন্তব্য করে দুর্নীতি দমন কমিশনের (দুদক) চেয়ারম্যান ইকবাল মাহমুদ বলেছেন, ঘুষখোরদের কোনো ‘আত্মমর্যাদা’ থাকে না। গতকাল মঙ্গলবার কমিশনের প্রধান কার্যালয়ে সংস্থাটির উপ-সহকারী পরিচালক থেকে উপ-পরিচালক পদমর্যাদার ৩০ জন কর্মকর্তার অফিস শৃঙ্খলা, অফিসের নিরাপত্তা, কাজের গোপনীয়তা এবং অফিসিয়াল আচরণ সংক্রান্ত এক প্রশিক্ষণ কর্মশালায় একথা বলেন তিনি। দুদক চেয়ারম্যান বলেন, “যারা মনে করেন ঘুষ খেলে কেউ জানবে না, তারা বোকার স্বর্গে বাস করেন। ঘুষ খাওয়া এবং ভিক্ষাবৃত্তির মধ্যে কোনো পার্থক্য নেই। ঘুষখোরদের কোনো আত্মমর্যাদা থাকে না।” কর্মকর্তাদের উদ্দেশে তিনি বলেন, দুর্নীতি দমন কমিশনকে একটি ‘স্মার্ট’ প্রতিষ্ঠানে পরিণত করতে হলে কর্মকর্তাদের প্রতিটি কাজ হতে হবে সুনির্দিষ্ট, পরিমাপযোগ্য, অর্জনযোগ্য, প্রাসঙ্গিক ও সময়াবদ্ধ। এর বিচ্যুতি ঘটলে কমিশনকে যোগ্য মর্যাদায় প্রতিষ্ঠিত করা কঠিন। কর্মকর্তাদের কাজে এ বিষয়গুলোর প্রতিফলন থাকতে হবে। “তাই আপনাদের আচার-আচরণ এবং কর্ম সম্পাদনে সততা, স্বচ্ছতা ও জবাবদিহির কোনো বিকল্প নেই।” দুদকের কর্মকান্ডের তথ্য যাতে বাইরে বের না হয় সেদিকে সর্বোচ্চ নজর দিতে কর্মকর্তাদের প্রতি আহ্বান জানান ইকবাল মাহমুদ। তথ্য পাচার হলে অপরাধীরা সুযোগ নিতে না পারে বলে কর্মকর্তাদের সতর্ক করে তিনি বলেন, “কমিশনের অনুসন্ধান ও তদন্তের তথ্য ব্যবস্থাপনায় এমন কোনো সুযোগ রাখা সমীচীন হবে না, যাতে অপরাধীরা কমিশনের নথির গতিবিধি এবং আগাম তথ্য জানতে পারে। এভাবে কমিশনের তথ্য পাচার অফিস শৃঙ্খলা পরিপন্থি।” নিজে পরিবর্তন না হলে পরিণত মানুষের মানসিকতা পরিবর্তন করা প্রায় অসম্ভব বলে মন্তব্য করেন দুদক চেয়ারম্যান। “তাই প্রতিষ্ঠানের স্বার্থেই নিজেকে নিজেই পরিবর্তন করুন। কমিশনের প্রতিটি কার্যক্রম টিমওয়ার্ক সংশি¬ষ্ট। তাই কর্মকর্তাদের পারস্পরিক সৌহার্দ্যপূর্ণ সম্পর্ক রাখতে হবে। তবে সবাইকে অফিস ডেকোরামও মানতে হবে। অভ্যন্তরীণ সর্বোচ্চ শৃঙ্খলা রক্ষা করা অফিসিয়াল আচরণের অন্যতম ভিত্তি,” কর্মকর্তাদের বলেন তিনি।

ইবিতে শাপলা ফোরামের বৃক্ষরোপণ ও ‘জ্যোতির্মান’ মোড়ক উন্মোচন

ইবি প্রতিনিধি ॥ মহান মুক্তিযুদ্ধ ও বাঙালী জাতীয়তাবাদে বিশ্বাসী ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রগতিশীল শিক্ষক সংগঠন শাপলা ফোরাম বৃক্ষরোপণ ও ‘জ্যোতির্মান’ স্মারণিকার মোড়ক উন্মোচন করেছে। গতকাল মঙ্গলবার বেলা ১১টায় বীরশ্রেষ্ট হামিদুর রহমান কেন্দ্রীয় মিলনায়তনে এ মোড়ক উন্মোচন অনুষ্ঠান অনুষ্ঠিত হয়। এতে প্রধান অতিথি ছিলেন বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য অধ্যাপক ড. হারুন-উর-রশিদ আসকারী। বিশেষ অতিথি ছিলেন উপ-উপাচার্য অধ্যাপক ড. শাহিনুর রহমান ও কোষাধ্যক্ষ অধ্যাপক ড. সেলিম তোহা। শাপলা ফোরামের সভাপতি অধ্যাপক ড. রেজওয়ানুল ইসলামের সভাপতিত্বে ও সাধারণ সম্পাদক অধ্যাপক ড. মাহাবুবর রহমানের সঞ্চালনায় অনুষ্ঠানে স্বাগত বক্তব্য রাখেন ‘জ্যোতির্মান’ সম্পাদনা পর্ষদের আহ্বায়ক অধ্যাপক ড. সাইদুর রহমান। উল্লেখ্য, ১৫ আগস্ট বঙ্গবন্ধুসহ সকল শহীদদের স্মরণে শাপলা ফোরাম ‘জ্যোতির্মান’ স্মারণিকার মোড়ক উন্মোচন করে।

মন্ত্রণালয়ের সভাকক্ষে সংবাদ সম্মেলনে ওবায়দুল কাদের

দুর্নীতি বিরোধী অভিযান কোনো দল বা গোষ্ঠীর বিরুদ্ধে নয় 

ঢাকা অফিস ॥ আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক এবং সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের বলেছেন, চলমান দুর্নীতি বিরোধী অভিযান কোনো দল বা গোষ্ঠীর বিরুদ্ধে নয়। অপরাধীর বিরুদ্ধে দুর্নীতিবিরোধী এই অভিযান চলছে। ওবায়দুল কাদের গতকাল মঙ্গলবার সচিবালয়ে মন্ত্রণালয়ের সভাকক্ষে সমসাময়িক রাজনৈতিক বিষয় নিয়ে আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে সাংবাদিকদের এক প্রশ্নের জবাবে এসব কথা বলেন। তিনি বলেন, ‘যারাই দুর্নীতি, অনিয়ম ও ক্যাসিনোর সঙ্গে জড়িত থাকবে তাদের বিরুদ্ধেই অভিযান চলবে। কাউকে ছাড় দেওয়া হবে না। এই অভিযান কোনো দল বা গোষ্ঠীর বিরুদ্ধে নয়।’ আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের বলেন, ‘সম্প্রতি অভিযানের টার্গেটে যদি কেউ থেকে থাকেন, তার বিরুদ্ধে উপযুক্ত তথ্য প্রমাণ থাকে অবশ্যই তাকে গ্রেফতার করা হবে। সরকার নিজেদের ঘর থেকেই দুর্নীতিবাজদের শাস্তি দিতে চায়। সরকারি দল একটা শুদ্ধি অভিযান চালাচ্ছে, এটা বাংলাদেশে নজিরবিহীন।’ তিনি বলেন, যারা বিভিন্ন অপকর্মে জড়িত তারা অনেকেই গোয়েন্দা নজরদারিতে রয়েছেন। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা দেশে ফিরেছেন, এখন সরকার কার কার বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেবে সে বিষয়ে জানতে পারবেন। সড়ক পরিবহনমন্ত্রী বলেন, চলমান অভিযানে বিএনপি ছাড়া দেশের সব মানুষ খুশি। এই অভিযানে তাদের আন্দোলন মার খাবে, এই ভয়ে তারা অভিযানকে স্বাগত জানাতে পরছেনা। বিএনপি তাদের শাসন আমলে দুর্নীতি করলেও কোনো নেতার বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিতে পারেনি। আওয়ামী লীগ নিজ দল থেকেই শুদ্ধি অভিযান শুরু করেছে। ওবায়দুল কাদের বলেন, অপরাধ ও দুর্নীতির দায়ে যাদের গ্রেফতার করা হচ্ছে তারা চুনোপুঁটি হলেও অপরাধ রাঘববোয়ালদের মতো বড়। শুধু রাজনৈতিক ব্যক্তিত্ব নয়, অন্যান্য সেক্টরেও যেখানেই অনিয়মের অভিযোগ আসছে সেগুলো তদন্ত করা হবে। অভিযানে কাউকে ছাড়া দেওয়া হচ্ছে না জানিয়ে তিনি বলেন, কাউকে ছাড় দেওয়া নয়, তথ্য প্রমাণের ভিত্তিতেই অভিযুক্ত ব্যক্তিদের গ্রেফতার করা হচ্ছে। ব্যক্তি যেই হোক, অপরাধী হলে তাকে শাস্তি পেতেই হবে। আওয়ামী লীগের সহযোগী সংগঠনগুলোর সম্মেলন প্রসঙ্গে সাংবাদিকদের এক প্রশ্নের জবাবে ওবায়দুল কাদের বলেন, ইতোমধ্যে সহযোগী সংগঠনগুলোকে সম্মেলনের বিষয়ে নির্দেশনা দেওয়া হয়েছে। দলীয় সভাপতির সাথে কথা বলে মেয়াদ উত্তীর্ণ সহযোগী সংগঠন গুলোর সম্মেলনের তারিখ নির্ধারণ করা হবে। ‘সরকারের মন্ত্রী ও এমপিরা আগে সম্পদের হিসাব দিক’ বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য মওদুদ আহমদের এমন বক্তব্যের জবাবে আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক বলেন, আগে মওদুদ সাহেব তার সম্পদের হিসাব জাতির সামনে তুলে ধরুক। কারণ তিনি দুর্নীতির দায়ে অনেকবার গ্রেফতার হয়েছেন। মন্ত্রী-এমপিদের সম্পদের হিসাব প্রসঙ্গে এক প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, আমরা প্রতি বছর প্রধানমন্ত্রীর কাছে সম্পদের হিসাব ও সরকারের কোষাগারে রাজস্ব দিয়ে থাকি। কোনো মন্ত্রী-এমপির আয়-ব্যয়ে অসঙ্গতি দেখলে তা নিয়ে রিপোর্ট করতে গণমাধ্যমের প্রতি আহ্বান জানান কাদের।

নদীর পানি বাড়ছে বৃষ্টিতে, ফারাক্কায় নয় – বন্যা পূর্বাভাস কেন্দ্র

ঢাকা অফিস ॥ পানি উন্নয়ন বোর্ড বলেছে, দেশের উত্তর-পশ্চিমাঞ্চলে নদীর পানি বেড়ে যে বন্যা পরিস্থিতি দেখা যাচ্ছে, তার মূল কারণ অতিবর্ষণ; ফারাক্কা বাঁধ নয়। গতকাল মঙ্গলবার মতিঝিলে পানি উন্নয়ন বোর্ডের কার্যালয়ে বন্যা পূর্বাভাস ও সতর্কীকরণ কেন্দ্রের নির্বাহী প্রকৌশলী মো. আরিফুজ্জামান ভূঁইয়া এ কথা বলেন। টানা কয়েক দিনের বৃষ্টি এবং উজানে পানি বাড়ায় দেশের পশ্চিমাঞ্চলে, বিশেষ করে পদ্মা অববাহিকার রাজশাহী, চাঁপাইনবাবগঞ্জ, কুষ্টিয়া ও নাটোর অঞ্চলে স্বল্পকালীন বন্যা হতে পারে বলে আগেই আভাস দিয়েছিলেন পানি উন্নয়ন বোর্ডের প্রকৌশলীরা। এর মধ্যে ভারতের উত্তর প্রদেশ ও বিহার রাজ্যে প্রবল বর্ষণের কারণে বন্যা দেখা দেওয়ায় গঙ্গায় ফারাক্কা বাঁধের ১১৯টি গেইটের সবগুলোই সোমবার খুলে দেয় ভারত। এই প্রেক্ষাপটে বিভিন্ন সংবাদমাধ্যমের খবরে বলা হয়, বৃষ্টি অব্যাহত থাকলে ভারতের পরিস্থিতির আরও অবনতি হতে পারে এবং ফারাক্কা খুলে দেওয়ায় বাংলাদেশেও বন্যা দেখা দিতে পারে। নির্বাহী প্রকৌশলী মো. আরিফুজ্জামান ভূঁইয়া বলেন, “এই যে বন্যা পরিস্থিতি, এই পরিস্থিতিতে আসলে ভারতীয় অংশের ফারাক্কা বাঁধের কোনো প্রভাব নেই। এই মৌসুমে ভারত অংশের ফারাক্কা বাঁধের গেইটগুলো খোলাই থাকে। এই সময় নদী যে আচরণ করে তা খুবই স্বাভাবিক আচরণ।” তিনি বলেন, গত জুলাই মাসের বন্যাও হয়েছিল ভারী বৃষ্টির কারণে। মৌসুমী বৃষ্টিপাতের কারণে এখন একই ধরনের পরিস্থিতির সৃষ্টি হয়েছে। “বাঁধের একাংশ ওইখানে আগে থেকেই খোলা ছিল। এখন আমাদের দেশে যে পানিটা আসছে সেটা বৃষ্টিপাতের কারণে।” ভারী বৃষ্টির কারণে ভারতের বিহারের পাশাপাশি পশ্চিমঙ্গের কিছু এলাকাতেও বন্যা পরিস্থিতির সৃষ্টি হয়েছে জানিয়ে আরিফুজ্জামান বলেন, “ভাটির দেশ হওয়ায় সেই পানিটা অবশ্যই আমাদের অংশের নদ-নদী দিয়ে প্রভাহিত হবে। বৃষ্টিপাত কমে গেলে আমাদের মধ্যাঞ্চল হয়ে পানিটা নেমে যাবে। ফলে আতঙ্কিত হওয়ার কারণ নেই।” বন্যা পূর্বাভাস ও সতর্কীকরণ কেন্দ্র জানিয়েছে, সুরমা ও কুশিয়ারা ছাড়া দেশের প্রায় সব প্রধান নদ-নদীর পানির সমতলই বৃদ্ধি পাচ্ছে। পদ্মা নদী মঙ্গলবার সকাল ৯টায় রাজবাড়ীর গোয়ালন্দ ও শরীয়তপুরের সুরেশ্বর পয়েন্টে বিপদসীমার ৭ সেন্টিমিটার উপর দিয়ে বইছিল। আর কুষ্টিয়ার কামারখালী পয়েন্টে গড়াই বইছিল বিপদসীমার ৫ সেন্টিমিটার উপর দিয়ে। গঙ্গা-পদ্মা অববাহিকার নদীগুলোর পানি বৃদ্ধির এই প্রবণতা আগামী ৭২ ঘণ্টা অব্যাহত থাকতে পারে এবং হার্ডিঞ্জ ব্রিজ ও ভাগ্যকূল পয়েন্টে পদ্মার পানি সমতল ২৪ ঘণ্টার মধ্যে বিপদসীমা অতিক্রম করতে পারে বলে আভাস দিয়েছে পানি উন্নয়ন বোর্ড। আরিফুজ্জামান ভূঁইয়া জানান, নদ-নদীর পানি বাড়ায় দেশের উত্তর-পশ্চিমাঞ্চলে রাজশাহী, চাঁপাইনবাবগঞ্জ, কুষ্টিয়া, নাটোর ও পাবনা এবং মধ্যাঞ্চলে ফরিদপুর, মুন্সিগঞ্জ, রাজবাড়ী, শরিয়তপুরসহ আশেপাশের এলাকাগুলোয় মাঝারি মাত্রার বন্যা পরিস্থিতির সৃষ্টি হয়েছে। “মৌসুমী বায়ুর প্রভাবে দেশের উত্তর-পশ্চিমাঞ্চলে এবং ভারতের উত্তর প্রদেশ ও বিহারে গত সপ্তাহজুড়ে আমরা ভারী বৃষ্টিপাত দেখেছি। এর প্রভাবে ভারতীয় অংশে গঙ্গা নদীর পানি বৃদ্ধি পেয়ে ইতোমধ্যে সেখানে বন্যা পরিস্থিতির সৃষ্টি হয়েছে। “বাংলাদেশেও গঙ্গা ও পদ্মা নদীর পানি গত বেশ কয়েকদিন ধরে বৃদ্ধি পাচ্ছে। আজ সকালে চারটি পয়েন্টে পানি বিপদসীমা অতিক্রম করেছে।” ভারত ও বাংলাদেশের আবহাওয়া অধিদপ্তদের বরাত দিয়ে আরিফুজ্জামান বলেন, “ভারতীয় অংশে ভারী বৃষ্টিপাতের পরিমাণ আজ থেকে কমে আসবে। তবে আরও চার-পাঁচদিন অব্যাহত থাকবে। এরপর এখানে নদীর বিভিন্ন পয়েন্টে পানি কমতে শুরু করবে।”

‘আজ জামিন পেলে কালই বিদেশ যাবেন খালেদা’

ঢাকা অফিস ॥ ‘আজ জামিন পেলে, কালই চিকিৎসার জন্য বিএনপি চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়া বিদেশ যাবেন’- এমন মন্তব্য করেছেন দলটির সংসদের মুখপাত্র হারুন অর রশীদ। সন্ধ্যায় বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয় হাসপাতালে খালেদা জিয়ার সঙ্গে দেখা করে সাংবাদিকদের কাছে তিনি এ কথা বলেন। মঙ্গলবার বিকাল সাড়ে ৪টায় বিএনপির তিন সদস্যের সংসদীয় প্রতিনিধিদল হাসপাতালে চেয়ারপারসনের সঙ্গে দেখা করতে যান। এক ঘণ্টারও বেশি সময় তারা খালেদা জিয়ার সঙ্গে সময় কাটান। প্রতিনিধিদলের অপর দুই সদস্য হলেন- উকিল আব্দুস সাত্তার ও আমিনুল ইসলাম। খালেদা জিয়া তার চিকিৎসা নিয়ে কোনো অভিযোগ করেছেন কি-না, এমন প্রশ্নে হারুন বলেন, ‘উনার যে সমস্ত অসুখ-বিসুখ রয়েছে, অবিলম্বে উন্নত ও বিশেষায়িত হাসপাতালে চিকিৎসা দরকার। ওনার যে উন্নত চিকিৎসা দরকার, সেটার জন্য বৈদেশিক চিকিৎসা দরকার। উনি চিকিৎসার সুযোগ পেলে তো অবশ্যই বিদেশ যাবেন। আজ জামিন পেলে, কাল উনি বিদেশ যাবেন এবং আজই যদি উনি জামিন পান, ওনার প্রথম প্রায়রিটি হবে চিকিৎসা এবং দেখা যাবে উনি কালই চিকিৎসার জন্য বিদেশ যাবেন। সাবেক তিনবারের প্রধানমন্ত্রী, তাকে কেন চিকিৎসার সুযোগ থেকে বঞ্চিত করা হচ্ছে?’ খালেদা জিয়া সাংগঠনিক বিষয়ে বা নেতাকর্মীদের কোনো বার্তা দিয়েছেন কি-না, এমন প্রশ্নের জবাবে বিএনপি সংসদীয় দলের এ মুখপাত্র বলেন, ‘সাংগঠনিক বিষয়ে উনি খোঁজখবর নিয়েছেন। উনাকে আমরা বলেছি, ম্যাডাম গত এক মাসে সারা বাংলাদেশে বিভিন্ন বিভাগে সভা-সমাবেশ হয়েছে। সরকারের অনেক বাধাবিপত্তির পরও, লক্ষ লক্ষ মানুষ এ সমাবেশে যোগদান করেছে। সাংগঠনিক অবস্থা যেভাবে আমরা চালিয়ে যাচ্ছি, আল্লাহর রহমতে…। উনি বলেন, তোমরা সবাইকে নিয়ে, একসাথে কাজ করো। দেশে গণতান্ত্রিক অবস্থা ফিরে আসলে মানুষ যেন মুক্তভাবে চলাফেরা করতে পারে, ভোটাধিকার ফিরে পায় তার জন্য তোমরা কাজ করো। ’ ‘আপনারা যখন সংসদ সদস্য হিসেবে শপথ নেন তখন খালেদা জিয়ার মুক্তির বিষয়টি সামনে আনা হয়েছিল। সরকারের সঙ্গে আপনাদের এ ব্যাপার কথা হয়েছে কি-না এবং এর অংশ হিসেবে আজ আপনারা কোনো বার্তা নিয়ে দেখা করেছেন কি-না’, এমন প্রশ্নে হারুন বলেন, ‘না, আমরা সংসদে যোগদানের পর পার্লামেন্টে যে কজন কথা বলার চেষ্টা করেছি, তার মধ্যে আমাদের মাননীয় নেত্রীর মুক্তির বিষয়টি অন্যতম ছিল এবং আমি দলনেতা হিসেবে সরকারের শীর্ষপর্যায়ের দু-এক জায়গাও কথা বলেছি, তার মুক্তির দাবিও জানিয়েছি। এ ব্যাপারে ওনারা বলেছেন, দেখা যাক, এটা আইনের ব্যাপার। ওনারা এড়িয়ে যাওয়ার চেষ্টা করেছেন।’ তিনি বলেন, ‘আমি বারবার বলছি, আজও দেশবাসীর উদ্দেশ্যে জানাচ্ছি যে, উনার জামিনের যে অধিকার সে অধিকার থেকে ওনাকে বঞ্চিত করা হয়েছে।’ সরকারের পক্ষ থেকে প্যারোলে মুক্তির বিষয়ে কোনো প্রস্তাবনা আছে কি-না, জবাবে হারুন বলেন, ‘না, এ ব্যাপারে কোনো প্রস্তাবনা নেই।’ প্যারোল ইস্যুতে আজ কোনো আলোচনা হয়েছে কি-না, জানতে চাইলে তিনি বলেন, ‘না, প্যারোলের ব্যাপার আসবে কেন? উনি তো জামিন পাওয়ার যোগ্য। সুতরাং প্যারোলের বিষয় আসবে কেন?’ হারুন বলেন, ‘সংসদ সদস্য হিসেবে আমাদের আরও আগে দেখা করা উচিত ছিল। আমরা সরকারের অনুমতি নিয়ে আজ দেখা করতে পেরেছি।’ খালেদা জিয়ার শারীরিক অবস্থা বর্ণনা করতে গিয়ে অশ্রুসিক্ত নয়নে তিনি বলেন, ‘উনি হাত সোজা করতে পারেন না, হাত কাঁপে। খাবার নিজে খেতে পারেন না, এমন একটি অবস্থায় উনি। এটা তার প্রতি চরম জুলুম। আমি সরকারের প্রতি আহ্বান জানাব, ওনার যে জামিনের অধিকার এটা থেকে যেন তাকে বঞ্চিত না করা হয়। ’ হারুন আরও বলেন, ‘আমরা তিনজন হাসপাতালে ম্যাডামকে দেখতে এসেছিলাম, এটা খুব বেদনাদায়ক, পীড়াদায়ক, এটা ভাষায় প্রকাশ করার মতো নয়। এ বয়সে সরকারের চরম জুলুমের বহিঃপ্রকাশ তার ওপর, এটা ভাষায় প্রকাশ করা যাবে না। উনি চরম অসুস্থ এবং ওনার নিজের খাওয়াটাও খেতে পারেন না। নিজের কাপড়টাও উনি নিজে পরতে পারেন না, এ অবস্থায় ওনাকে বন্দি রাখা কত বড় অমানবিক! উনি দেশবাসীর কাছে দোয়া চেয়েছেন, আমরা আমাদের চোখে পানি ধরে রাখতে পারিনি।’ ‘এ জুলুম থেকে তাকে যেন আল্লাহপাক মুক্ত করেন- এটাই আমাদের প্রত্যাশা। উনি বাংলাদেশের তিনবারের সাবেক প্রধানমন্ত্রী, বাংলাদেশের গণতান্ত্রিক আন্দোলনের অন্যতম নেত্রী। আজ উনি যে চরম ও অত্যন্ত অমানবিক জুলুমের শিকার- এটি আমি ভাষায় প্রকাশ করতে পারব না।’ বাংলাদেশের দুর্নীতিবিরেধী তথাকথিত অভিযানের মধ্য দিয়ে, ক্যাসিনো অভিযানের মধ্য দিয়ে আজ যে চিত্র বহিঃপ্রকাশ ঘটেছে, আজ আমাদের সাবেক প্রধানমন্ত্রীকে সামান্য দুই কোটি টাকার একটা মিথ্যা মামলায় সাজা দিয়ে জামিন পর্যন্ত দেয়া হচ্ছে না। এটা কত বড় জলুম! উনি দেশবাসীর কাছে দোয়া চেয়েছেন, উনি যে অসুস্থ’- যোগ করেন হারুন।

গাংনীতে পানিতে ডুবে শিশুর মৃত্যু

গাংনী প্রতিনিধি ॥ মেহেরপুরের গাংনী উপজেলার মটমুড়া ইউনিয়নের বাওট গ্রামে পানিতে ডুবে আব্দুল্লাহ (৩) নামের এক শিশুর শিশুর মৃত্যু হয়েছে। আব্দুল্লাহ বাওট গ্রামের প্রবাস  ফেরত রফিকুল ইসলামের ছেলে। গতকাল মঙ্গলবার দুপুরের দিকে বাড়ির আঙ্গিনায় একটি গর্তের পানিতে শিশু আব্দুল্লাহর মরদেহ ভাসতে দেখে কয়েকজন ব্যক্তি। স্থানীয়রা জানান, আব্দুল্লাহদের নির্মাণাধীন একটি ঘরে মাটি ভরাট করার লক্ষ্যে ঘরের পাশেই একটি গর্ত করে মাটি সংগ্রহ করে তার পরিবার। কয়েকদিনের নিম্নচাপের পানি ওই গর্তে পানি জমে। মঙ্গলবার দুপুরে ওই গর্তে শিশু আব্দুল্লাহ-এর মরদেহ ভাসতে দেখে স্থানীয় কয়েকজন। খেলতে গিয়ে অসাবধানবশত গর্তের পানিতে ডুবে মারা গেছে বলে ধারণা করা হচ্ছে।

প্রধানমন্ত্রীর ভারত সফর

তিস্তার পানি বণ্টন বিষয়ে আলোচনা!

ঢাকা অফিস ॥ প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা আগামীকাল বৃহস্পতিবার ভারত সফরে যাচ্ছেন। এই সফরে দু’দেশের মধ্যে রোহিঙ্গা প্রত্যাবাসন ও তিস্তার পানি বণ্টন বিষয়ে আলোচনার পাশাপাশি ৮টি সমঝোতা স্মারক স্বাক্ষরিত হওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে।  প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ও ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির মধ্যে শনিবার দ্বিপক্ষীয় বৈঠকের পর যোগাযোগ, সংস্কৃতি, কারিগরি সহযোগিতা, বাণিজ্য ও বিনিয়োগ খাতে সমঝোতা স্মারক স্বাক্ষরিত হতে পারে।ভারতে বাংলাদেশের হাইকমিশনার সৈয়দ মোয়াজ্জেম আলী একটি গণমাধ্যমকে এ তথ্য জানান। তিনি বলেন, দুই প্রধানমন্ত্রীর মধ্যে ৫ অক্টোবর বৈঠকের পর মূলত যোগাযোগ, সংস্কৃতি, কারিগরি সহযোগিতা, বাণিজ্য ও বিনিয়োগ খাতে এ পর্যন্ত ৭ থেকে ৮টি সমঝোতা স্মারক স্বাক্ষরের বিষয় নিশ্চিত হয়েছে। তবে, এ সংখ্যা ১০টিতেও উন্নীত হতে পারে। হাইকমিশনার বলেন, তিস্তা ও রোহিঙ্গা ইস্যুসহ সকল বিষয়ে দুই প্রধানমন্ত্রীর মধ্যে বিস্তারিত আলোচনা হবে। তবে, এ ব্যাপারে চূড়ান্ত সিদ্ধান্তের আগে আমরা কোন ধারণা পোষণ করতে পারছি না। ভারতের ন্যাশনাল রেজিস্ট্রার অব সিটিজেন (এনআরসি) বিষয়ে প্রশ্নের জবাবে জাতিসংঘ সাধারণ অধিবেশনের ফাঁকে শেখ হাসিনা ও নরেন্দ্র মোদির মধ্যে বৈঠকে এনআরসি প্রশ্নে বাংলাদেশকে উদ্বিগ্ন না হতে ভারতের প্রধানমন্ত্রীর বক্তব্য উল্লেখ করে মোয়াজ্জেম হোসেন বলেন, এটি তাদের ইস্যু, তাদেরকেই এটি হ্যান্ডেল করতে দিন। এনআরসি নিয়ে আমাদের উদ্বিগ্ন হওয়ার প্রয়োজন নেই। হাইকমিশনার বলেন, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ওয়ার্ল্ড ইকোনোমিক ফোরাম (ডাব্লিউইএফ)-এর ভারতীয় শাখা ইন্ডিয়ান ইকোনোমিক ফোরাম-২০১৯-এ যোগ দিতে ৩ অক্টোবর সকালে ৪ দিনের সফরে নয়াদিল্লী পৌঁছবেন। ওই ফোরামে প্রধানমন্ত্রী বিশেষ করে নিম্ন আয়ের দেশ থেকে মধ্যম আয়ের দেশে উন্নীতসহ বাংলাদেশের সাম্প্রতিক সময়ের অগ্রগতি ও সমৃদ্ধি তুলে ধরবেন। এর পাশাপাশি তিনি বাংলাদেশের বর্তমান জিডিপি প্রবৃদ্ধি এবং বিগত কয়েক বছরে দেশের অর্থনৈতিক উন্নয়নে তাঁর সরকারের ব্যাপক সাফল্যের কথাও উল্লেখ করবেন। তিনি ভারতের বড় বড় বিনিয়োগকারীদের বাংলাদেশে আরো বিনিয়োগেরও আহ্বান জানাবেন। এছাড়া তিনি ভারতের তিনটি চেম্বার অব কমার্স এন্ড এক্সচেঞ্জ নেতৃবৃন্দের সঙ্গে শুক্রবার যৌথভাবে বৈঠক ও মতবিনিময় করবেন। ভারতের প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে বৈঠক অনুষ্ঠিত হবে শনিবার সকাল সাড়ে ১১টা থেকে দুপুর ১টা পর্যন্ত ঐতিহাসিক হায়দ্রাবাদ হাউসে। পরে বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রীর সৌজন্যে আয়োজিত ভারতের প্রধানমন্ত্রীর মধ্যাহ্নভোজে যোগ দেবেন শেখ হাসিনা। বিকেলে শেখ হাসিনা ভারতের রাষ্ট্রপতি রামনাথ কোবিন্দের সঙ্গে সাক্ষাৎ করবেন। এদিকে ভারতের পররাষ্ট্রমন্ত্রী ড. এস জয়শঙ্কর সকালে বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে সাক্ষাৎ করবেন। এছাড়া সফররত সিঙ্গাপুরের ডেপুটি প্রধানমন্ত্রী হেং সুয়ে কেট শুক্রবার বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে সাক্ষাৎ করবেন। তিনি রোববার ভারতের কংগ্রেস পার্টির প্রধান সোনিয়া গান্ধীর সঙ্গেও বৈঠক করবেন। শেখ হাসিনা বৃহস্পতিবার বাংলাদেশে হাইকমিশন আয়োজিত সংবর্ধনা ও নৈশভোজে যোগ দেবেন। এছাড়া জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জীবন ও কর্ম ভিত্তিক ফিচার ফিল্ম তৈরির বিভিন্ন বিষয় নিয়ে আলোচনার জন্য ভারতের প্রখ্যাত চিত্র পরিচালক শ্যাম বেনেগাল রোববার বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে সাক্ষাৎ করবেন। বাংলাদেশ-ভারত যৌথ প্রযোজিত বঙ্গবন্ধুর উপর নির্মিত চলচ্চিত্র মুজিব বর্ষ ২০২০-২১ শেষ হওয়ার আগে মুক্তি পাবে। ভারত সফর শেষে প্রধানমন্ত্রী রোববার বিকেলে দেশের উদ্দেশ্যে নয়াদিল্লী ত্যাগ করবেন।

ইবি’র ফোকলোর বিভাগে নতুন সভাপতি ড. মোঃ মোস্তাফিজুর রহমান দায়িত্ব গ্রহন

ইসলামী  বিশ্ববিদ্যালয়ে  ফোকলোর বিভাগের সরকারী অধ্যাপক ড. মোঃ মোস্তাফিজুর রহমান নতুন সভাপতি হিসাবে দায়িত্ব গ্রহন করেন। গতকাল মঙ্গলবার অনুষদ ভবনে নিচতলায় দায়িত্ব হস্তান্তর অনুষ্ঠানটি অনুষ্ঠিত হয়। দায়িত্ব হস্তান্তর অনুষ্ঠানে ফোকলোর বিভাগের বিদায়ী সভাপতি প্রফেসর ড. মোহাঃ সাইদুর রহমানের সভাপতিত্বে প্রধান অতিথি’র বক্তব্যে ভাইস-চ্যান্সেলর প্রফেসর ড. মোঃ হারুন-উর-রশিদ আসকারী (ড. রাশিদ আসকারী) বলেন, আমরা প্রতিনিয়ত কাজ করে যাচ্ছি বিশ্ববিদ্যালয়ের মান উন্নয়নের জন্য। ফোকলোর বিভাগ বিশ্ববিদ্যালয়ের সেই মানকে এগিয়ে নিয়ে যাবার জন্য গুরুত্বপুর্ণ ভূমিকা রাখবে। তিনি বলেন, সারা দেশে গ্রামীন কৃষ্টি কালচারকে তুলে ধরে সেগুলোকে মানুষের মাঝে যুগের পর যুগ বাঁচিয়ে রাখবে ফোকলোর বিভাগের শিক্ষার্থীরা। তিনি সমাজ থেকে সকল ধরনের কুসংস্কারকে ঝেড়ে ফেলতে ফোকলোর চর্চার উপর গুরুত্বারোপ করেন। বিশেষ অতিথির বক্তব্যে প্রো ভাইস-চ্যান্সেলর প্রফেসর ড. মোঃ শাহিনুর রহমান বলেন, অসাস্প্রদায়িক বাঙালী জাতীয়তাবাদের চেতনাকে  তুলে ধরবার জন্য ফোকলোর চর্চার গুরুত্ব অপরসীম। সমাজ থেকে সকল ধরনের কুপমন্ডকতা দুর করবার জন্য ফোকলোর চর্চার কোন বিকল্প নেই। অপর বিশেষ অতিথির বক্তব্যে ট্রেজারার প্রফেসর ড. মোঃ সেলিম তোহা বলেন,  ফোকলোর বিভাগ এই বিশ্ববিদ্যালয়ে প্রতিষ্ঠিত হবার পর হতে বিশ্ববিদ্যালয়ে ঝংকার ও বৈচিত্র এসেছে। এতে করে বিশ্ববিদ্যালয়ে প্রগতিশীলতার ও সাংস্কৃতিক চর্চার ধারা আরো বেগবান হয়েছে। অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন সামাজিক বিজ্ঞান অনুষদের ডিন প্রফেসর ড. নাসিম বানু ও ফোকলোর বিভাগের সরকারী অধ্যাপক ড. আবু শিবলী মোঃ ফতেহ আলী চৌধুরী ও বিভাগের শিক্ষার্থীবৃন্দ। দায়িত্ব হস্তান্তর অনুষ্ঠানটি পরিচালনা করেন  ফোকলোর বিভাগের শিক্ষক মৌসুমি আক্তার মৌ। সংবাদ বিজ্ঞপ্তি

কুষ্টিয়ায় আন্তর্জাতিক প্রবীণ দিবস পালন

নিজ সংবাদ ॥ ‘বয়সের সমতার পথে যাত্রা’ এই প্রতিপাদ্যকে সামনে নিয়ে কুষ্টিয়ায় আন্তর্জাতিক প্রবীণ দিবস পালন উপলক্ষ্যে র‌্যালি ও আলোচনা অনুষ্ঠিত হয়েছে। গতকাল সকালে বাংলাদেশ প্রবীণ হিতৈষী সংঘ কুষ্টিয়া জেলা শাখার আয়োজনে সার্কিট হাউজ প্রাঙ্গন থেকে একটি র‌্যালি বের হয়ে শহরের বিভিন্ন সড়ক প্রদক্ষিন করে জেলা প্রশাসকের কার্যালয় গিয়ে শেষে হয়। পরে জেলা প্রশাসকের সভা কক্ষে বাংলাদেশ প্রবীণ হিতৈষী সংঘ কুষ্টিয়া জেলা শাখার সভাপতি এ্যাড. খন্দকার শামসুল আলম দুদুর সভাপতিত্বে আলোচনা সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্য রাখেন কুষ্টিয়ার জেলা প্রশাসক মো. আসলাম হোসেন। এ সময় জেলা প্রশাসক বলেন, আজকের প্রবীণরা তাদের কর্মজীবনে দেশ ও সমাজের জন্য বহু অবদান রেখেছেন। প্রবীণদের কাছ থেকে নতুন প্রজন্মকে অনেক কিছু শিখতে হবে।  তিনি বলেন, পরিবারের সদস্যসহ সকলকে তাদের নিজ নিজ অবস্থান থেকে প্রবীণদের খোঁজখবর নিতে হবে এবং তাদের প্রতি সম্মান দেখাতে হবে। বাংলাদেশ প্রবীণ হিতৈষী সংঘ কুষ্টিয়া জেলা শাখার সাধারণ সম্পাদক আশরাফ উদ্দিন নজু’র পরিচালনায় অনুষ্ঠানে অন্যান্যের মধ্যে বক্তব্য রাখেন অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (সার্বিক) আজাদ জাহান, সমাজসেবা অধিদপ্তরের উপ-পরিচালক রোখসানা পারভিন, প্রবীণ হিতৈষী সংঘের সিনিয়র সহ-সভাপতি নজরুল ইসলাম, সহ-সাধারণ সম্পাদক আতিয়ার মন্ডল, সাংগঠনিক সম্পাদক আব্দুস সাত্তার, কোষাধ্যক্ষ খাদেমুল ইসলাম, স্বাস্থ্য বিষয়ক সম্পাদক মোকারম হোসেন মোয়াজ্জেম, প্রচার ও যোগাযোগ বিষয়ক সম্পাদক আব্দুল মালেক রানা, দপ্তর সম্পাদক নিত্য গোপালসহ অন্যান্য নেতৃবৃন্দ। এদিকে সন্ধ্যায় আন্তর্জাতিক প্রবীণ দিবস উপলক্ষ্যে কুষ্টিয়া জেলা শিল্পকলা একাডেমিতে প্রবীণ আড্ডা ও সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান অনুষ্ঠিত হয়। এ সময় বাংলাদেশ প্রবীণ হিতৈষী সংঘ কুষ্টিয়া জেলা শাখার সাধারণ সম্পাদক আশরাফ উদ্দিন নজু, জেলা শিল্পকলা একাডেমির সাধারণ সম্পাদক  আমিরুল ইসলাম, যুগ্ম-সম্পাদক শাহীন সরকার, কালচারাল অফিসার সুজন রহমান, প্রবীণ হিতৈষী সংঘের সদস্য কোহিনুর খানম, দরবেশ হাফিজসহ অন্যান্য সদস্যবৃন্দ ও শিল্পকলা একাডেমির কর্মকর্তা এবং শিল্পীগণ উপস্থিত ছিলেন। পরে কনক চৌধুরীর পরিচালনায় কবিতা আবৃতি ও সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান পরিবেশিত হয়।

কেক কাটা, র‌্যালী ও আলোচনা সভার মধ্য দিয়ে

কুষ্টিয়া হতে প্রকাশিত “দৈনিক দিনের খবর” পত্রিকার ১০ম বর্ষে পদার্পন উদ্যাপন

নিজ সংবাদ ॥ কেক কাটা, র‌্যালী ও আলোচনা সভার মধ্যদিয়ে নানা আয়োজনে কুষ্টিয়ার বহুল প্রচারিত দৈনিক দিনের খবর পত্রিকার ৯ম বর্ষ পূর্তি ও দশম বর্ষে পদার্পন উদযাপিত হয়েছে। প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী উপলক্ষে পত্রিকার পরিচালনা পর্ষদের উদ্যোগে কুষ্টিয়া পৌরসভার বিজয় উল্লাসে কেক কাটা, আনন্দ র‌্যালী ও আলোচনা সভার আয়োজন করা হয়। এতে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন কুষ্টিয়ার জেলা প্রশাসক মোঃ আসলাম হোসেন। দৈনিক দিনের খবর পত্রিকার সম্পাদক ও প্রকাশক ফেরদৌস রিয়াজ জিল্লুর সভাপতিত্বে বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন কুষ্টিয়া প্রেসক্লাবের সাধারণ সম্পাদক ও দৈনিক আন্দোলনের বাজার পত্রিকার সম্পাদক আনিসুজ্জামান ডাবলু, কুষ্টিয়া এডিটরস ফোরামের সভাপতি ও দৈনিক কুষ্টিয়া দর্পণ পত্রিকার সম্পাদক মুজিবুল শেখ, দৈনিক সময়ের কাগজ পত্রিকার ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক ও কুষ্টিয়া প্রেসক্লাবের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক নরুন্নবী বাবু, চ্যানেল টোয়েন্টিফোরের স্টাফ রিপোর্টার ও কুষ্টিয়া প্রেসক্লাবের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক শরীফ বিশ^াস, ডিবিসি চ্যানেল ও দৈনিক সমকালের কুষ্টিয়া প্রতিনিধি সাজ্জাদ রানা, দৈনিক মাটির ডাক পত্রিকার সম্পাদক ও কুষ্টিয়া প্রেসক্লাবের সহ-সভাপতি  লুৎফর রহমান কুমার, মাটির পৃথিবীর সম্পাদক ও কুষ্টিয়া প্রেসক্লাবের নির্বাহী সদস্য এম. এ জিহাদ,  দৈনিক প্রথম আলোর কুষ্টিয়া প্রতিনিধি তৌহিদী হাসান শিপলু, দৈনিক যুগান্তর পত্রিকার কুষ্টিয়া প্রতিনিধি ও কুষ্টিয়া প্রেসক্লাবের কোষাধ্যক্ষ এ এম জুবায়েদ রিপন, যমুনা টেলিভিশনের কুষ্টিয়া প্রতিনিধি মাহাতাব উদ্দিন লালন, দৈনিক দিনের খবর পত্রিকার পরিচালনা পর্ষদের চেয়ারম্যান সাব্বির মোহাম্মদ কাদেরী সবু ও দৈনিক দিনের খবর পত্রিকার পরিচালনা পর্ষদের সদস্য সচিব আহসানুল হক আদলু। এছাড়াও প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন, দৈনিক নয়াদিগন্ত পত্রিকার কুষ্টিয়া প্রতিনিধি আ ফ ম নুরুল কাদের, মোহনা টিভির কুষ্টিয়া প্রতিনিধি এস এম আকরাম, দৈনিক মানবজমিন পত্রিকার কুষ্টিয়া প্রতিনিধি দেলোয়ার হোসেন মানিক, দৈনিক আলোকিত বাংলাদেশ পত্রিকার কুষ্টিয়া প্রতিনিধি আরিফ মেহমুদ, বাংলা টিভির কুষ্টিয়া জেলা প্রতিনিধি ও কুষ্টিয়া প্রেসক্লাবের দপ্তর সম্পাদক এম লিটন উজ জামান প্রমুখ। প্রধান অতিথির বক্তব্যে জেলা প্রশাসক মোঃ আসলাম হোসেন বলেন, সংবাদপত্র সমাজের দর্পণ। সমাজের নানা অসঙ্গতি তুলে ধরতে সংবাদপত্র গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে। আমরা অনেকেই অনেক বিষয় হয়তো নজরে আনতে পারিনা সংবাদপত্রের মাধ্যমে প্রত্যন্ত এলাকার মানুষের খোঁজখবর, তাদের প্রত্যাশা, তাদের চাহিদার বিষয়গুলো আমরা জানতে পারি। এতে করে তাদের দোড়গোড়ায় সেবা পৌছে দেওয়া সম্ভব। বর্তমান সরকার মিডিয়া বান্ধব সরকার। এই সরকারের সময়ে সকল গণমাধ্যম তাদের স্বাধীনতা নিয়ে কাজ করছে। বর্তমান সময়ে আমরা অনেক আলোচিত বিষয়গুলো মিডিয়ার মাধ্যমে জানতে পারছি ফলে সরকারের সিদ্ধান্ত নেওয়ার ক্ষেত্রে অগ্রনী ভূমিকা পালন করছে। আমি বিশ^াস করি, দৈনিক দিনের খবর পত্রিকাটি আরো সুন্দরভাবে, সফলভাবে এগিয়ে যাবে অবহেলিত মানুষের কল্যাণে কাজ করবে, আমি পত্রিকাটির সর্বাঙ্গীন সাফল্য কামনা করছি। বিশেষ অতিথির বক্তব্যে কুষ্টিয়া প্রেসক্লাবের সাধারণ সম্পাদক ও দৈনিক আন্দোলনের বাজার পত্রিকার সম্পাদক আনিসুজ্জামান ডাবলু বলেন, কুষ্টিয়া থেকে প্রকাশিত দৈনিক দিনের খবর পত্রিকাটি অত্যন্ত সুনামের সাথে বৃহৎ পরিসরে প্রকাশিত হয়ে আসছে। পত্রিকাটি আরো সামনের দিকে এগিয়ে যাক, আমি পত্রিকাটির সাফল্য কামনা করছি। বিশেষ অতিথির বক্তব্যে কুষ্টিয়া এডিটরস ফোরামের সভাপতি ও দৈনিক কুষ্টিয়া দর্পণ পত্রিকার সম্পাদক মুজিবুল শেখ বলেন, দৈনিক দিনের খবর পত্রিকাটি সব সময় ন্যায়ের পক্ষে কথা বলে। অনেক ঘাত প্রতিঘাত পেরিয়ে পত্রিকাটি ১০ম বর্ষে পদার্পন করলো। পত্রিকাটি পাঠকের চাহিদা পূরণ করে আরো সামনের দিকে এগিয়ে যাক এই কামনা করছি।

সবশেষে পত্রিকাটির সম্পাদক ও প্রকাশক ফেরদৌস রিয়াজ জিল্লু তার সমাপনী বক্তব্যে বলেন, “সত্য প্রকাশে নির্ভীক” এই স্লোগানকে সামনে রেখে দিনের খবর পত্রিকাটি পাঠকের প্রতিদিনের সংবাদের চাহিদা পূরণ করছে। আমরা সব সময় পাঠকের চাওয়া, তাদের প্রত্যাশাকে প্রাধান্য দিয়ে যাচ্ছি। তাদের অনুপ্রেরণা পরামর্শ আমাদের কাছে অতি মূল্যবান। এছাড়াও বিজ্ঞাপনদাতা, পত্রিকার সাথে নিযুক্ত সকল কলাকসুলীর ঐক্লান্তিক পরিশ্রমে আমরা আজ এই জায়গাতে পৌছেছি। আমরা আরো সামনে যেতে চাই। দৈনিক দিনের খবর আপনাদের সংবাদের চাহিদা পূরণ করবে এবং পত্রিকাটি আপনাদের হাতে পৌঁছাতে আমি সকলের কাছে সার্বিক সহযোগিতা কামনা করছি।