জাতিসংঘ সাধারণ পরিষদের ৭৪তম অধিবেশনে যোগ দিতে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নিউইয়র্ক যাত্রা

ঢাকা অফিস ॥ প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা জাতিসংঘ সাধারণ পরিষদের (ইউএনজিএ) ৭৪তম অধিবেশনে যোগ দিতে যুক্তরাষ্ট্রে আটদিনের সরকারি সফরের লক্ষ্যে গতকাল শুক্রবার বিকেলে আবুধাবী হয়ে নিউইয়র্কের উদ্দেশে ঢাকা ত্যাগ করেছেন। প্রধানমন্ত্রী ২৭ সেপ্টেম্বর ইউএনজিএ ৭৪তম বার্ষিক অধিবেশনে ভাষণ দেবেন। সফরকালে প্রধানমন্ত্রী ২৪ সেপ্টেম্বর ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীর সঙ্গে দ্বিপাক্ষিক বৈঠক করবেন এবং ২৮ সেপ্টেম্বর তিনি জাতিসংঘ মহাসচিব আন্তোনিও গুতেরেসের সঙ্গে  বৈঠক করবেন। বিমান বাংলাদেশ এয়ারলাইন্সের একটি ভিভিআইপি ফ্লাইট প্রধানমন্ত্রী এবং তার সফরসঙ্গীদের নিয়ে শুক্রবার বিকেল ৩টা ৩৫ মিনিটে আবুধাবীর উদ্দেশে হযরত শাহ জালাল আন্তর্জাতিক বিমান বন্দর ত্যাগ করে। মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক মন্ত্রী আ ক ম মোজাম্মেল হক, সড়ক পরিবহন ও সেতু মন্ত্রী ওবায়দুল কাদের, সংসদের চীফ হুইপ নুর-ই আলম চৌধুরী লিটন. বেসামরিক বিমান পরিবহন ও পর্যটন প্রতিমন্ত্রী মো.মাহবুব আলী বিমানবন্দরে প্রধানমন্ত্রীকে বিদায় জানান। এছাড়া, মন্ত্রিপরিষদ সচিব, তিন বাহিনীর প্রধানগণ, প্রধানমন্ত্রীর মূখ্য সচিব, ঢাকায় বাংলাদেশের রাষ্ট্রদূত, বাংলাদেশে আমীরাতের রাষ্ট্রদূত, ভ্যাটিকানের রাষ্ট্রদূত এবং পদস্থ বেসামরিক ও সামরিক কর্মকর্তারা বিমানবন্দরে এ সময় উপস্থিত ছিলেন। ফ্লাইটটি সন্ধ্যা ৬টা ৩০ মিনিটে (স্থানীয় সময়) আবুধাবী আন্তর্জাতিক বিমান বন্দরে অবতরণ করবে। আমীরাতে বাংলাদেশের রাষ্ট্রদূত মোহাম্মদ ইমরান বিমানবন্দরে প্রধানমন্ত্রীকে অভ্যর্থনা জানাবেন। সংযুক্ত আরব আমিরাতের রাজধানী আবুধাবীতে একদিনের যাত্রাবিরতির পরে ২২ সেপ্টেম্বর সকাল সাড়ে দশটায় (স্থানীয় সময়) ইত্তেহাদ এয়ার ওয়েজের একটি ফ্লাইটে নিউইয়র্কের পথে যাত্রা করবেন। একইদিনে প্রধানমন্ত্রী বিকাল ৪টা ২৫ মিনিটে (স্থানীয় সময়) নিউইয়র্কে জন এফ কেনেডি আন্তর্জাতিক বিমান বন্দরে পৌঁছবেন।

বিমান বন্দরে যুক্তরাষ্ট্রে নিযুক্ত বাংলাদেশের রাষ্ট্রদূত মোহাম্মদ জিয়াউদ্দিন এবং জাতিসংঘে বাংলাদেশের রাষ্ট্রদূত ও স্থায়ী প্রতিনিধি মাসুদ বিন মোমেন প্রধানমন্ত্রীকে স্বাগত জানাবেন। ২৩ সেপ্টেম্বর প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা স্পেনের প্রধানমন্ত্রী পেদ্রো সানচেজের সঙ্গে কো-চেয়ার হিসেবে জাতিসংঘ ইকোনমিক এন্ড সোসাল কাউন্সিলে (ইসিওএসওসি) একই সঙ্গে ইউনিভার্সাল হেলথ কভারেজ বিষয়ে উচ্চ পর্যায়ের বহুপাক্ষিক প্যানেল বৈঠক পরিচালনা করবেন। এছাড়া প্রধানমন্ত্রী অছি পরিষদে ইউনিভার্সাল হেলথ কভারেজ বিষয়ে উচ্চ পর্যয়ের বৈঠকের পূর্ণাঙ্গ অধিবেশনে বাংলাদেশের অবস্থান তুলে ধরবেন বলে আশা করা হচ্ছে। প্রধানমন্ত্রী জাতিসংঘ সাধারণ পরিষদ হলে ক্লাইমেট এ্যাকশন সামিটে বক্তব্য রাখবেন এবং ‘রিকগনাইজিং পলিটিক্যাল লিডারশিপ ফর ইম্যুনাইজেশন ইন বাংলাদেশ’ বিষয়ক অনুষ্ঠানে যোগ দেবেন। ২৪ সেপ্টেম্বর বাংলাদেশ প্রধানমন্ত্রী লোটে নিউইয়র্ক প্যালেস হোটেলের কেনেডি রুমে ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির সাথে দ্বিপক্ষীয় বৈঠক করবেন। শেখ হাসিনা জাতিসংঘ সদর দপ্তর (ইউএনএইচকিউ) বুথে জাতিসংঘ মহাসচিবের স্পেশাল এডভোকেট ফর ইনক্লুসিভ ফিন্যান্স ফর ডেভেলপমেন্ট কুইন মেক্সিমার সাথে বৈঠক করবেন। তিনি জাতিসংঘ সদও দপ্তরের কনফারেন্স রুম ৭ এ গ্লোবাল কমিশন অন অ্যাডাপ্টেশন আয়োজিত একটি অনুষ্ঠানে অংশ নেবেন। তিনি নর্থ ডেলিগেট’স লাউঞ্জে জাতিসংঘ মহাসচিব আয়োজিত স্টেট লাঞ্চনেরও অংশ নেবেন। তিনি জাতিসংঘ সদর দপ্তরের কনফারেন্স রুম ১১ তে বাংলাদেশের স্থায়ী মিশন ও ওআইসি সচিবালয় আয়োজিত মিয়ানামারে রোহিঙ্গা সংখ্যালঘুদের অবস্থার ওপর একটি উচ্চ পর্যায়ের বৈঠকেও যোগ দিবেন। শেখ হাসিনা ইউএনএইচকিউ এর ইসিওএসওসি চেম্বারে ‘লিডারশিপ ম্যাটার্স-রিলেভ্যান্স অব মহাত্মা গান্ধী ইন দ্য কন্টেম্পোরারি ওয়ার্ল্ড’ শীর্ষক এক অনুষ্ঠানে যোগ দেবেন। এছাড়াও তিনি লোটে নিউইয়র্ক প্যালেস হোটেলে মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প আয়োজিত একটি অভ্যর্থনা অনুষ্ঠানে যোগ দেবেন। ২৫ সেপ্টেম্বর, ট্রাস্টিশিপ কাউন্সিলে টেকসই উন্নয়নের (এসডিজি সম্মেলন) উপর উচ্চ পর্যায়ের রাজনৈতিক ফোরামে ‘লোকালাইজিং দ্য এসডিজিস’ এ প্রধানমন্ত্রী কো-মডারেটরের দায়িত্ব পালন করবেন। বাংলাদেশ প্রধানমন্ত্রী কাউন্সিল অন ফরেন রিলেশনস এ ‘এ কনভারসেশন উইথ অনারেবল প্রাইম মিনিস্টার শেখ হাসিনা’ শীর্ষ একটি অনুষ্ঠানেও অংশ নেবেন। একই দিনে লোটে নিউইয়র্ক প্যালেস হোটেলে বাইলেটারেল মিটিং রুমে তিনি অস্ট্রেলিয়ার সাবেক প্রধানমন্ত্রী এবং সকলের জন্য স্যানিটেশন ও পানির সভাপতি কেভিন রাডের সঙ্গে বৈঠক করবেন। এছাড়াও তিনি বাংলাদেশ হাউসে একটি নৈশভোজে অংশ গ্রহণ করবেন। ২৬ সেপ্টেম্বর লোটে নিউইয়র্ক প্যালেস হোটেলের বাইলেটারেল মিটিং রুমে বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী ইক্সোনমোবাইল এলএনজি মার্কেট ডেভেলপমেন্ট ইনকর্পোরেটেডের চেয়ারম্যান এলেক্স ভি. ভলকোভ, ইউনেস্কোর সাবেক মহাপরিচালক ইরিনা বোকোভা, বিল অ্যান্ড মেলিন্ডা গেটস ফাউন্ডেশনের কো-চেয়ার বিল গেটস এবং আইসিসি প্রোসিকিউটর ফাতোউ বেনসোউদার সাথে বৈঠক করবেন। শেখ হাসিনা একই দিনে লোটে নিউইয়র্ক প্যালেসের হোলমেসে ইউএস চেম্বার অব কমার্স আয়োজিত মধ্যাহ্ন ভোজে অংশ নেবেন। এছাড়াও তিনি ইউনিসেফ হাউসের লাবৌউইস হলে ইউনিসেফ আয়োজিত ‘এক ইভেনিং উইথ প্রাইম মিনিস্টার শেখ হাসিনা’ অনুষ্ঠানে অংশ নেবেন। ২৭ সেপ্টেম্বর, ইউএন সদর দফতরের কনফারেন্স রুম ১ এ শেখ হাসিনা বাংলাদেশের স্থায়ী মিশন আয়োজিত ‘সাইটেইনেবেল ইউনিভার্সেল হেল্থ কভারেজ : কমপ্রেভেনসিভ প্রাইমারি কেয়ার ইনক্লুসিভ অব মেন্টাল হেল্থ অ্যান্ড ডিজেবিলিটিজ’ শীর্ষক একটি উচ্চ পর্যায়ের অনুষ্ঠানে যোগ দেবেন। বাংলাদেশ প্রধানমন্ত্রী একই দিন জাতিসংঘ সাধারণ সম্মেলনের ৭৪তম বার্ষিক সাধারণ বিতর্কে বক্তৃতা দিবেন। ২৮ সেপ্টেম্বর, শেখ হাসিনা নিউইয়র্কে বাংলাদেশের স্থায়ী মিশনে প্রেস ব্রিফিং করবেন এবং এছাড়াও তিনি নিউইয়র্কের হোটেল ম্যারিয়ট মারকুইসে বাংলাদেশী কমিউনিটি আয়োজিত একটি অভ্যর্থনা অনুষ্ঠানে যোগ দেবেন। জাতিসংঘ সচিবালয়ে বাংলাদেশ প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা জাতিসংঘ মহাসচিব এন্তোনিও গুতেরেসের সাথে দ্বিপক্ষীয় বৈঠকে বসবেন। প্রধানমন্ত্রী ভ্যাকসিনেশন ও যুব দক্ষতা উন্নয়নে বাংলাদেশের ব্যাপক সাফল্যের জন্য জাতিসংঘ সাধারণ পরিষদের অধিবেশন চলাকালে দুটি আন্তর্জাতিক পুরস্কার গ্রহণ করবেন। পররাষ্ট্রমন্ত্রী ড. এ কে আবদুল মোমেন বুধবার এক সংবাদ সম্মেলনে জানিয়েছেন, গ্লোবাল এলায়েন্স ফর ভ্যাকসিনেশন এন্ড ইমিউনাইজেশন (গাভি) টিকা প্রদানে বাংলাদেশের অসামান্য সাফল্যের স্বীকৃতিতে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে ‘ভ্যাকসিন হিরো’ নামে পুরস্কার প্রদানের আগ্রহ প্রকাশ করেছে। তিনি বলেন, এছাড়াও, ইউনিসেফ জাতিসংঘ সাধারণ পরিষদের অধিবেশন চলাকালে ‘চ্যাম্পিয়ন অব স্কিল ডেভেলপমেন্ট ফর ইয়ুথ’ শীর্ষক পুরস্কারে প্রধানমন্ত্রীকে সম্মানিত করবে। পররাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, এই পুরস্কার প্রদানের জন্য ‘প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে সম্মান জানানোর জন্য এক সন্ধ্যা’ শীর্ষক একটি অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হবে। এছাড়াও প্রধানমন্ত্রী ভয়েস অব আমেরিকা, ওয়াশিংটন পোস্ট ও ওয়াল স্ট্রিট জার্নালসহ আন্তর্জাতিক সুপরিচিত গণমাধ্যমকে সাক্ষাৎকার দেবেন। ২৯ সেপ্টেম্বর স্থানীয় সময় রাত ৯টায় বাংলাদেশ প্রধানমন্ত্রী ইতিহাদ এয়ারওয়েজের একটি ফ্লাইটে করে নিউইয়র্ক থেকে ঢাকার উদ্দেশ্যে রওয়ানা দেবেন। তিনি আবুধাবি হয়ে ঢাকায় পৌঁছাবেন। ৩০ সেপ্টেম্বর স্থানীয় সময় রাত ৮টায় শেখ হাসিনা আবুধাবি আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে অবতরণ করবেন। প্রধানমন্ত্রী আবুধাবি আন্তর্জাতিক বিমানবন্দর থেকে স্থানীয় সময় রাত ১০টা ৪৫ মিনিটে বিমান বাংলাদেশ এয়ারলাইন্সের একটি ভিভিআইপি বিমানযোগে ঢাকার উদ্দেশে রওয়ানা দেবেন। ১ অক্টোবর ভোরে ফ্লাইটটি হযরত শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে অবতরণ করবে।

চাঁদাবাজীসহ নানা অভিযোগ

কুষ্টিয়া সদর থানা যুবলীগের সাধারণ সম্পাদক মিজুকে আটক করেছে পুলিশ

নিজ সংবাদ ॥ কুষ্টিয়া সদর থানা যুবলীগের সাধারণ সম্পাদক মিজানুর রহমান মিজুকে আটক করেছে কুষ্টিয়া জেলা গোয়েন্দা পুলিশ। শুক্রবার রাত ৮টার দিকে কুষ্টিয়া ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয় থানা এলাকা থেকে তাকে আটক করা হয়। আটকের বিষয়ে পুলিশের পক্ষ থেকে আনুষ্ঠানিক বক্তব্য পাওনা না গেলেও নির্ভরযোগ্য একটি সূত্র দাবী করেছে বিশ্ববিদ্যালয় অশান্ত, টেন্ডারবাজীসহ নানা অভিযোগ রয়েছে তার বিরুদ্ধে। এ কারনে তাকে আটক করা হতে পারে। এদিকে আরেকটি সূত্রের দাবী সম্প্রতি কুষ্টিয়া ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয় শাখা ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক রাকিবুল ইসলাম রাকিবের পক্ষাবলম্বন করে বহিরাগতদের সাথে নিয়ে ক্যাম্পাসকে অস্থিতিশীল কার চেষ্টায় লিপ্ত রয়েছেন মিজু।

বহিরাগতদের সাথে ক্যাম্পাসে প্রবেশের চেষ্টা

রাকিবকে কুষ্টিয়া-ঝিনাইদহের বহিরাগত কয়েকজন নেতার বিরুদ্ধে সহযোগীতার অভিযোগ

বিক্ষুব্ধ নেতা-কর্মিদের ধাওয়ায় পালালো বিতর্কিত ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্রলীগের সাধারন সম্পাদক রাকিব

নিজ সংবাদ ॥ ফোনালাপ ফাঁসের পর থেকেই ক্যাম্পাস ছাড়া কুষ্টিয়া ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয় (ইবি) ছাত্রলীগের বিতর্কিত সাধারন সম্পাদক রাকিবুল ইসলাম রাকিব। রাকিবই নয় সভাপতি পলাশও লাপাত্তা। ক্যাম্পাস মুলত: দখলে বঞ্চিত ছাত্রলীগ নেতা-কর্মিদের। বঞ্চিতরা দুই নেতাকে ক্যাম্পাসে অবাঞ্ছিত ঘোষনা করে প্রতিদিন কর্মসুচী চালিয়ে যাচ্ছে। এদিকে গতকাল শুক্রবার বিকেলে ইবি ছাত্রলীগের সাবেক সাধারন সম্পাদক ঠিকাদার তুহিন ও কয়েকজন যুবলীগ নেতার সহযোগিতায় ক্যাম্পাসে প্রবেশের চেষ্টা করে রাকিব। এ সময় বিক্ষুব্ধ ও বঞ্চিত কয়েক’শ ছাত্রলীগ নেতা-কর্মির ধাওয়ায় পালিয়ে যায় রাকিব। ইতিমধ্যে ফাঁস হওয়ায় ফোনালাপটি তারই বলে নিশ্চিত হয়েছে গোয়েন্দা সংস্থা। প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ে বিষয়টি জানিয়ে একাধিক গোয়েন্দা সংস্থা রিপোর্ট করেছে। রাকিব কারা অর্থসহ নানাভাবে সহযোগিতা করছে তাদের বিষয়েও খোঁজ খবর নিচ্ছে গোয়েন্দা সংস্থা।

ইবি ছাত্রলীগ সূত্রে জানা গেছে, ফোনালাপ ফাঁস হওয়ার পর থেকে ক্যাম্পাস ছাড়া ছাত্রলীগ সভাপতি রবিউল ইসলাম পলাশ ও সম্পাদক রাকিবুল ইসলাম রাকিব। এরপর ক্যাম্পাস দখলে চলে যায় বঞ্চিত ও বিক্ষুব্ধ প্রকৃত ছাত্রলীগ নেতা-কর্মিদের দখলে। এদিকে গতকাল বিকেলে হঠাৎ করেই রাকিবুল ইসলাম রাকিব তার কিছু সহযোগি ও বহিরাগত তিন নেতাকে সাথে করে ক্যাম্পাসে প্রবেশ করে। এ সময় প্রতিটি হলে অবস্থান নেই ছাত্রলীগের হল কমিটিসহ বিশ্ববিদ্যালয়ের আগের কমিটির নেতারা। তারা এক হয়ে মিছিল করে রাকিবসহ বহিরাগত নেতাদের ধাওয়া করে। ধাওয়ায় রাকিবসহ বহিরাগত নেতারা মূল গেট দিয়ে পালিয়ে যায়। পরে বিক্ষুব্ধ নেতা-কর্মিরা পুরো ক্যাম্পাসে মিছিল করে। ছাত্রলীগের মিছিলে নেতৃত্ব দেয় লালন, আরাফাতসহ অন্য নেতা-কর্মিরা।

ইবি ছাত্রলীগের নেতা লালন জানান, রাকিব একজন বিতর্কিত নেতা। ফোনালাপ ফাঁস হওয়ার পর সে ক্যাম্পাস থেকে পালিয়ে যায়। কোনভাবেই এরকম কালপিট একজন নেতাকে ক্যম্পাসের ছাত্রলীগের কোন নেতা-কর্র্মি ঢুকতে দিতে পারে না। সবাই তার বিরুদ্ধে রুখে দাঁড়িয়েছে।

এদিকে ফোনালাপ ফাঁসের পর রাবিক এ ফোনালাপটি তার নয় বলে থানায় জিডি করলেও ফাঁস হওয়া ফোনালাপটি তার নিজের বলে নিশ্চিত করেছে একটি গোয়েন্দা সংস্থা। ওই গোয়েন্দা সংস্থা ইতিমধ্যে বিষয়টি জানিয়ে প্রধানমন্ত্রীর দপ্তরে রিপোর্ট করেছে। এছাড়া রাকিবকে কারা অর্থ দিয়ে নেতা করেছে তারও একটি গোপন প্রতিবেদন প্রধানমন্ত্রীর দপ্তরে পাঠিয়েছে।

গোয়েন্দা সংস্থার একজন কর্মকর্তা বলেন, ফোনালাপটি রাকিবের এটা নিয়ে কোন সন্দেহ নেই। আর বহিরাগত ৪জন নেতা তাকে ক্যাম্পাসে সহযোগিতা করছে। এছাড়া ইবি প্রশাসনের কয়েকজনের বিষয়েও জানা গেছে। তাদের বিষয়টিও প্রতিবেদন পাঠানো হয়েছে। আর বিতর্কিত কমিটিকে ভেঙ্গে প্রকৃত ছাত্রলীগের নেতা-কর্মিদের দিয়ে কমিটি গঠন না করা হলে ক্যাম্পাসে অস্থিতিশীল পরিস্থিতি তৈরি হতে পারে বলে প্রতিবেদনে উল্লেখ করা হয়েছে।

ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয়ে ড্রাইভার নিয়োগ, ছাত্রলীগের নতুন কমিটি আনা ও আগের কমিটির ভাঙ্গতে ৪০ লাখ টাকা খরচ হয় সদ্য সাধারন সম্পাদক পদ পাওয়া রাকিবুল ইসলামের রাকিবের। স্থানীয় এক আওয়ামী লীগ নেতার সাথে এ নিয়ে তার নানা কথা হয়। বিষয়টি পরে ফাঁস হয়ে যায়।

ইবির একটি সূত্র জানিয়েছে, ৫৩৭ কোটি টাকার প্রকল্প, সামনে নিয়োগসহ নানা বিষয় নিয়ে যাতে ক্যাম্পাসে কেউ অশান্তি সৃষ্টি করতে না পারে সে জন্য কেন্দ্রকে অর্থ দিয়ে পলাশ ও রাকিবকে দিয়ে কমিটি করা হয়। অথচ ছাত্রলীগের প্রকৃত ও নিবেদিত কর্মি হিসেবে পরিচিত লালন ও আরাফাতকে উপেক্ষা করে এ কমিটি দেয়া হয়। এ কমিটি দেয়ার পর সবাই হতাশা প্রকাশ করে।

ইবি প্রশাসনের একটি সূত্র জানিয়েছে, বর্তমান কমিটি প্রশাসনের গৃহপালিত। এ কমিটিকে প্রশাসন যেভাবে চালায় সেভাবে চলে যায়। সামনে সব ধরনের কাজ কর্ম যাতে প্রশাসন নিজেদের মত করে করতে পারে এ কারনেই ছাত্রলীগের কমিটি গুরুত্বপূর্ণ। তাই অর্থ ও লবিং করে উত্তরাঞ্চলে বাড়ি পলাশকে সভাপতি করে আনা হয়। আর আগে থেকে নিয়োগ বানিজ্যসহ শিক্ষকদের নানা অপকর্মের সহযোগিতা দিয়ে আসা রাকিবকে সাধারন সম্পাদক করা হয়।

এ কমিটির দুই নেতাকে ব্যবহার করে দুই জেলার বহিরাগত ৪ জন নেতা টেন্ডার, নিয়োগ বানিজ্যসহ নানা অপকর্ম করার অপচেষ্টা করে আসছে বলে প্রমান পেয়েছে গোয়েন্দা সংস্থা। বিষয়টি প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয় ছাড়াও স্থানীয় সাংসদকে অবহিত করেছে সংস্থাটি। ওই নেতা স্থাণীয় এমপি মাহবুবউল আলম হানিফের লোক দাবি করলেও ভিতরে ভিতরে তারা এমপির স্বার্থ পরিপন্থী কাজে লিপ্ত বলে ইতিমধ্যে সবখানে আলোচনা চলছে। এসব নেতাদের বিরুদ্ধে টেন্ডারবাজি, চাকুরি দেয়ার নামে অর্থ আত্মসাতের অভিযোগ রয়েছে।’

নাগার্জুনের বাড়িতে পাওয়া গেলো অজ্ঞাত মরদেহ

বিনোদন বাজার ॥ দক্ষিণের জনপ্রিয় অভিনেতা নাগার্জুনের বাগান বাড়িতে পাওয়া গেলো এক অজ্ঞাত মরদেহ। নায়কের বাগান বাড়ি থেকে এই মরদেহ পাওয়ার পর থেকে নানা রকম আলোচনা সমালোচনা শুরু হয়েছে। এদিকে পুলিশও এই মৃত্যুর তদন্ত শুরু করেছে।জানা গেছে, প্রায় ৬ মাস আগে তেলাঙ্গনার রঙ্গরেড্ডি জেলায় ৪০ একর জমিসহ এই বাগান বাড়ি কিনেছিলেন নাগার্জুন। এতদিন পড়েই ছিলো এই জমি। সম্প্রতি এই জমিতে চাষের জন্য লোক নিয়োগ করেছিলেন তিনি। বুধবার বাগানে কাজ করতে গিয়েই কর্মীরা এই মৃতদেহের খোঁজ পান।বাগান বাড়ির কর্মীরাই পুলিশকে খবর দেন। এরপর পুলিশ তদন্তের কাজ শুরু করেছে। প্রাথমিকভাবে পুলিশ ধারণা করছে কেউ হয়তো এই নির্জন বাগান বাড়িতে এসে আত্মহত্যা করেছে।মরদেহটি এতটা পুরোনো হয়েছে যে চেহারা দেখে তাকে চেনার উপায় নেই। কে এই ব্যক্তি তার পরিচয় খোঁজার চেষ্টা করছে পুলিশ। আগে ভাগে এ বিষয়ে বেশি কিছু বলতে নারাজ তারা।গত কয়েক মাসে রঙ্গরেড্ডি জেলা থেকে কতজন নিখোঁজ হয়েছেন, সেই তালিকাও দেখতে শুরু করেছে পুলিশ। আশা করছেন সত্যিটা খুঁজে বের করতে পারবেন তারা। উল্লেখ্য, এর আগেও গত বছর নাগার্জুনের বাগানবাড়ি থেকে এক দম্পতির মৃতদেহ উদ্ধার করেছিলেন পুলিশ। ভেঙ্কাটা রাজু (৩২) ও দুর্গা (৩০) ওই বাড়ির শ্রমিক ছিলেন। তদন্তের পর পুলিশ সংবাদমাধ্যমকে জানিয়েছিলেন এই বাড়িতে বিদ্যুৎস্পৃষ্ট হয়ে মারা গিয়েছিলেন তারা।

 

সিংহের মুখোমুখি আলিয়া

বিনোদন বাজার ॥ বলিউড তারকা আলিয়া ভাট একে পর এক সিনেমায় অভিনয় করে নিজেকে প্রমাণ করে চলেছেন। মাত্র ২২ বছর বয়সেই বলিউডে অভিষেক করা এই তারকা নিজের প্রথম ছবিতেই রেখেছেন যোগ্যতার পরিচয়। তারপর ধীরে ধীরে নিজের সৌন্দর্য ও মেধাকে কাজে লাগিয়ে জনপ্রিয়তা অর্জন করেছেন। বলিউডে এখন সবচেয়ে রোমান্টিক জুটি রণবীর-আলিয়া। এই দুই তারকার প্রেমকাহিনি একেবারে বাংলা সিরিয়ালের মতো। বর্তমান সময়ে এই জুটি প্রেম দিয়েই বেশি আলোচনায় থাকছেন। একসঙ্গে প্রায়ই ঘুরতে দেখা যায় তাদের। আলিয়ার সঙ্গে থাকে ক্যামেরা। নিজের ইউটিউব চ্যানেলের জন্য মজার মজার সব ভিডিও বানান তিনি। অবাক করার মতো ব্যাপার হলো এবার শুটিং করতে গিয়ে সিংহের মুখোমুখি হয়েছেন আলিয়া ভাট।‘ব্রহ্মাস্ত্র’ সিনেমার শুটিং শেষে আফ্রিকা ঘুরতে গিয়েছিলেন আলিয়া ও রণবীর। সেখানেই বেরিয়ে পড়েছিলেন জঙ্গল সাফারিতে। এখানে সিংহের দেখা পান তিনি। সাফারি পার্কে ভিডিও করে সেই ভিডিও শেয়ার করেছেন আলিয়া।জঙ্গলে ঘুরে বেড়িয়ে বেশ উচ্ছ্বসিত আলিয়া। ভিডিও দেখে তেমনটাই মনে হচ্ছে। আলিয়া একা নন ভিডিওতে দেখা যাচ্ছে বেশ ক’জন আফ্রিকানকেও। তাদের নানা বিষয় ভিডিটিতে তুলেও ধরেন আলিয়া ভাট।

নীতিশের রামায়ণে সীতা হচ্ছেন দীপিকা, রাবণ প্রভাস

বিনোদন বাজার ॥ ছিঁছোড়ের পর এবার রামায়ণ বানানোর পরিকল্পনা করছেন পরিচালক নীতিশ তিওয়ারি। শোনা যাচ্ছে, নীতিশ তিওয়ারির ‘রামায়ণ’ ছবির নায়ক নয় বরং খলনায়কের ভূমিকায় দেখা যেতে পারে প্রভাসকে। এই ছবিতে রাম-সীতার ভূমিকায় ভাবা হয়েছে দীপিকা পাড়ুকোন ও হৃত্বিক রোশনকে।নীতিশের রামায়ণে প্রভাসকেই রাবণের ভূমিকায় ভাবা হয়েছে বলে শোনা যাচ্ছে। বাহুবলীতে প্রভাসের যে চরিত্রটির জন্য তিনি জনপ্রিয় হয়ে উঠেছিলেন তার সেই চরিত্র খানিকটা রামায়ণের রামের আধারে আঁকা হয়েছিল। তবে এবার যদি প্রভাসকে রাবণের ভূমিকায় দেখা যায় তবে সেটা হবে তার বাহুবলীর চরিত্রের এক্কেবারেই বিপরীত।ছবির নির্মাতারা মনে করছেন, ছবির এই কাস্ট যদি এক্কেবারে ঠিক থাকে তাহলে প্রতিটি চরিত্রের এই অভিনেতা-অভিনেত্রীরা এক্কেবারেই মাননসই হবেন। ৬০০ কোটি টাকা বাজাটে তৈরি হতে চলেছে এই ছবি।শোনা যাচ্ছে হিন্দি, তামিল, তেলুগু ভাষাতে গোটা দেশে মুক্তি পেতে চলেছে এই ছবি। খুব শিগগিরই এই ছবি নিয়ে ঘোষণা করতে চলেছেন নির্মাতারা।

কাউকে না জানিয়েই জেনিফারের বিয়ে!

বিনোদন বাজার ॥ বছরখানেক আগে থেকেই ব্যক্তিগত সম্পর্ক নিয়ে আলোচনায় অস্কার পুরস্কার বিজয়ী মার্কিন অভিনেত্রী জেনিফার লরেন্স। কখনো প্রেম, আবার কখনো বিয়ের খবরে গণমাধ্যমের সামনে এসেছেন তিনি। এই নায়িকার এমন সম্পর্ক নিয়ে অনেকদিন ধরেই নানা জল্পনা-কল্পনা চলছিল। এবার অনেকটা নিশ্চিতভাবে শোনা যাচ্ছে, বাগদত্তা কুক ম্যারোনিকে বিয়ে করেছেন তিনি।সোমবার দু’জন নিরাপত্তারক্ষী ও আলোকচিত্রীসহ এ অভিনেত্রীকে ম্যানহাটন ম্যারেজ ব্যুরোতে কুক ম্যারোনি দেখা যায়। এরপর থেকেই তার বিয়ের গুঞ্জনটি জোরাল হয়।

এছাড়া এক প্রত্যক্ষদর্শী মাইক্রোব্লগিং সাইট টুইটারে লেখেন, ‘যখন আপনি বিয়ের লাইসেন্স নিতে যান এবং দেখেন আপনার চোখের সামনে জেনিফার লরেন্স বিয়ে করছেন।’ তবে পরবর্তী সময়ে টুইটটি মুছে ফেলা হয়েছে বলে সংবাদমাধ্যমটিতে জানানো হয়েছে।শোনা যাচ্ছে, জেনিফার লরেন্স ও কুক ম্যারোনি ম্যানহাটনে বাড়ি খুঁজছেন। খুব শিগগিরই তারা একসঙ্গে থাকা শুরু করবেন। এছাড়া অক্টোবরে বড়সড়ো বিয়ের পার্টির আয়োজন করবেন তারা। চলতি বছরের ফেব্রুয়ারিতে বাগদান সারেন জেনিফার-কুক ম্যারোনি। এর আগে তারা প্রায় ৭ মাস প্রেম করেছিলেন। গত মে মাসে ঘনিষ্ঠজনদের নিয়ে বাগদানের একটি পার্টির আয়োজনও করেন তারা।জুনে এন্টারটেইনমেন্ট টুনাইটে আমেরিকান হাসল সিনেমাখ্যাত এ অভিনেত্রী জানান, কুকের প্রস্তাবে তিনি সঙ্গে সঙ্গেই রাজি হয়ে গিয়েছিলেন। কারণ এটি তার জন্য খুব সহজ একটি সিদ্ধান্ত ছিল।

রানুর পর এবার উবার চালকের গানের ভিডিও ভাইরাল

বিনোদন বাজার ॥ রানু মন্ডলের পর এবার সোশ্যাল মিডিয়া মাতালেন এক উবার চালক। ১৯৯০ সালে নির্মিত ছবি ‘আশিকী’-র গান নজরে কে সামনে গেয়ে ভারতের লক্ষেèৗয়ের এক উবার চালক সবার মন জয় করেছে।তার গান গাওয়ার ভিডিওটি সবাইকে বিস্মিত করেছে। তার গানটি যেন অবিকল নকল করেছে কুমার শানুর গায়কীকে।এনডিটিভির এক প্রতিবেদনে বলা হয়, মাইক্রোব্লগিং ওয়েবসাইটে এবং অন্যান্য সোশ্যাল মিডিয়া প্ল্যাটফর্মগুলিতে তার সুরের প্রচুর প্রশংসা হচ্ছে। অনেকেই তার কণ্ঠের অকুণ্ঠ প্রশংসা করেছেন।শনিবার ভিডিওটি অনলাইনে শেয়ার করে এক টুইটার ব্যবহারকারী লিখেছেন, লক্ষেèৗয়ের এক উবার-ইন্ডিয়ার চালক বিনোদ জির সঙ্গে দেখা হয়েছে। তিনি একজন আশ্চর্য গায়ক এবং আমার যাত্রাকালে তিনি আমার জন্য একটি গানও গেয়েছেন।টুইটারে তিনি আরও লেখেন, আপনার আর কি চাই? দয়া করে এই ভিডিওটি দেখুন এবং তাকে বিখ্যাত করুন।ভিডিওটি টুইটারে প্রায় ৭ হাজার ভিউ ইতিমধ্যেই সংগ্রহ করেছে। এমনকি উবার ভারতেরও কানে গিয়ে পৌঁছেছে এই খবর। তারা ওই গানের প্রশংসা করেছেন।ওই সংস্থাটি লেখে, মি. বিনোদ হলেন একজন বিখ্যাত চালক-অংশীদার, যিনি তার সংগীত সফরের জন্য আমাদের ইতিবাচক ফল দিয়ে যাচ্ছেন।টনবৎ ওহফরধ টুইটে আরও লেখে, এই উবার স্টারের আবেগময় কণ্ঠটি ইন্টারনেটের ভাইরাল হয়েছে এবং এটি অনেকেই শেয়ার করছেন জেনে আমরা আনন্দিত।অনেকে আবার এই ভিডিওটি বলিউডের সংগীত প্রযোজক এবং গায়কদেরও ট্যাগ করেছেন, যাতে তারা এই গায়ককে খেয়াল করেন ও তার গানটি শোনেন।গত মাসে রাণাঘাটের এক ভবঘুরে মহিলা রানু মন্ডলের গান অনলাইনে ভাইরাল হওয়ার পরে রাতারাতি খ্যাতির শিখরে উঠে গেছেন তিনি। তার গানের একটি ভিডিও ভাইরাল হয় ইন্টারনেট দুনিয়ায়।এরপর তিনি নজরে আসেন বলিউডের গায়ক তথা মিউজিক ডিরেক্টর হিমেশ রেশমিয়ার। ইতিমধ্যেই হিমেশ রেশমিয়ার সঙ্গে গানও রেকর্ড করেছেন রানু মন্ডল। সূত্র: এনডিটিভি

কঙ্গনার কাছ থেকে পুরস্কার নিলেন ইশরাত

বিনোদন বাজার ॥ বাংলাদেশের শ্রেষ্ঠ ওয়েডিং ফটোগ্রাফার হিসেবে সম্মাননা পেলেন ওয়েডিং ফটোগ্রাফার ইশরাত আমিন। গত ১৬ সেপ্টেম্বর ‘মিলেনিয়াম ব্রিলিয়ান্স অ্যাওয়ার্ড ২০১৯’ তার হাতে তুলে দেয়া হয়। থাইল্যান্ডের ব্যাংককে ভারতের জনপ্রিয় নায়িকা কঙ্গনা রানাউত’র কাছ থেকে ইশরাত আমিন এই সম্মাননা গ্রহণ করেন। একটি জাকজমক পূর্ণ অনুষ্ঠানে এমন সম্মাননা পেয়ে দারুণ খুশি বাংলাদেশের কন্যা ইশরাত আমিন। তার এই সম্মাননা প্রাপ্তির খবরটি ফেসবুকে শেয়ার করার পর থেকেই প্রশংসায় ভাসছেন ইশরাত আমিন। বিশ্বের বিভিন্ন স্থান থেকে নিজ নিজ ক্ষেত্রে গুনী মানুষদের এই অ্যাওয়ার্ড অনুষ্ঠানে সম্মানিত করা হয়েছে। ইশরাত আমিন বলেন,‘ ধন্যবাদ জানাই ‘মিলেনিয়াম ব্রিলিয়ান্স অ্যাওয়ার্ড কর্তৃপক্ষকে আমার কাজকে, আমার মেধাকে মূল্যায়ন করে স্বীকৃতি দেয়ার জন্য। আমি সত্যিই আনন্দিত, উচ্ছসিত, গর্বিত। সবার কাছে দোয়া চাই যেন আগামী দিনেও আমার কর্মক্ষেত্রে আমার মেধার স্বাক্ষর রাখতে পারি।’ ওয়েডিং ফটোগ্রাফিতে ইশরাত আমিন নিজেকে এমন একটি অবস্থানে নিয়ে গেছেন যেখানে অনেকেই তাদের বিয়ের অনুষ্ঠানে তাকে দিয়ে ফটোগ্রাফি করানোর স্বপ্ন দেখেন। ২০১০ সালে একজন পেশাদার ফটোগ্রাফার হিসেবে ইশরাত আমিনের যাত্রা শুরু হয়।

ঢাকায় শুটিং করছেন শ্রাবন্তী

বিনোদন বাজার ॥ কলকাতার জনপ্রিয় অভিনেত্রী শ্রাবন্তী চ্যাটার্জি। দুই বাংলাতেই রয়েছে তার গ্রহণযোগ্যতা। ছবিও করছেন এখন এপার-ওপার মিলিয়ে। সর্বশেষ তাকে বাংলাদেশের ‘যদি একদিন’ সিনেমায় দেখা গেছে। মোস্তফা কামাল রাজ পরিচালিত ছবিতে তিনি তাহসানের বিপরীতে অভিনয় করে দর্শকের মন জয় করেছেন। বর্তমানে তিনি কাজ করছেন বাংলাদেশের ‘বিক্ষোভ’ ছবিতে। শাপলা মিডিয়া প্রযোজিত এ সিনেমার শুটিং করতে বৃহস্পতিবার রাতে হঠাৎ করেই বাংলাদেশে এসেছেন এ নায়িকা। রাত সাড়ে ৯টার ফ্লাইটে ঢাকার উদ্দেশে কলকাতা থেকে রওনা দেন শ্রাবন্তী ২০ সেপ্টেম্বর থেকে গাজীপুরে ছবিটির শুটিংয়ে অংশ নিচ্ছেন তিনি। চলতি মাসের শুরুর দিকে ছবিটির শুটিং শুরু হয় কলকাতায়। ছবিটি পরিচালনা করছেন শামীম আহমেদ রনি। ছবিটিতে শ্রাবন্তী ছাড়াও আরো অভিনয় করছেন শান্ত খান, বলিউডের রাহুল দেব প্রমুখ। এতে একটি আইটেম গানে পারফর্ম করবেন সানি লিওন। বাংলাদেশের সড়ক আন্দোলন নিয়ে প্রযোজনা সংস্থা স্পø্যাশ মিডিয়া নির্মাণ করছে ‘বিক্ষোভ’ সিনেমা। ১ সেপ্টেম্বর থেকে ভারতে বেশ গোপনে সিনেমাটির শুটিং শুরু হয়। সেখানে শ্রাবন্তীর সঙ্গে শুটিংয়ে অংশ নেন শান্ত খান। তবে তিনি সিনেমাটির নায়ক কিনা এখনো সে তথ্য নিশ্চিত করেনি সিনেমাটির প্রযোজনা প্রতিষ্ঠান।

গ্রামীন কৃষিতে ‘আলোক ফাঁদ’   

কৃষি প্রতিবেদক ॥ ফসলের ক্ষতিকর পোকা দমনে বিষাক্ত কীটনাশক ব্যবহার হয়, যা  বেশ ব্যয়বহুল এবং পরিবেশ ও মানবস্বাস্থ্যের জন্য ক্ষতিকর। এর বিকল্প হিসেবে আলোর ফাঁদ বেশ কার্যকর। এর মাধ্যমে ক্ষেতের জন্য উপকারী পোকাও শনাক্ত করা সম্ভব হয়। পরিবেশবান্ধব এ পদ্ধতি দেশের বিভিন্ন স্থানের কৃষকদের মধ্যে জনপ্রিয় হয়ে উঠছে। রোপা আমনের পাশাপাশি সবজি ক্ষেতের পোকা ধ্বংসে আলোর ফাঁদ ব্যবহার হচ্ছে দেশজুড়ে।

বাংলাদেশের প্রান্তিক খেত-খামারে পোকা দমনে জনপ্রিয় হয়ে উঠেছে ‘আলোক ফাঁদ’। এই পদ্ধতিতে একদিকে যেমন খরচ বাঁচে, অন্যদিকে দূষণের হাত থেকে রক্ষা পায় পরিবেশ। এছাড়াও এই পদ্ধতিতে কেবল ক্ষতিকর পোকাই নিধন হচ্ছে,  বেঁচে যাচ্ছে উপকারী পোকাগুলো।

কৃষি বিভাগ সূত্রে জানা গেছে, ফসলের ক্ষতিকর মোকড় নিয়ন্ত্রণে বর্তমানে সমন্বিত বালাই ব্যবস্থাপনা বা আইপিএম একটি আধুনিক ধারণা। এ পদ্ধতিতে কীটনাশক ছাড়া অন্যান্য পদ্ধতিতে ক্ষতিকর মোকড় নিয়ন্ত্রণ করা সম্ভব। বিশেষ করে আলোর ফাঁদের মাধ্যমে অনেক পোকা নিয়ন্ত্রণ করা যেতে পারে। আলোর ফাঁদ প্রকৃত অর্থে ফসলে পোকার উপস্থিতি যাচাই বা মনিটরিংয়ের একটি যন্ত্রবিশেষ। কিন্তু এটা দিয়ে শুধু পোকার উপস্থিতি যাচাই না করে ক্ষেতের পাশে নিয়মিতভাবে পেতে রেখে অনেক পোকা আলোয় আকৃষ্ট করে মারা যায়।

প্রান্তিক পর্যায়ের চাষীদের সাথে কথা বলে জানা যায়, প্রতি বছর তাদের ফসলের  খেতের পোকা দমনে কীটনাশকের বাড়তি ব্যয়ে হাঁপিয়ে ওঠে। তবে ‘আলোক ফাঁদ’ পদ্ধতিতে সহজেই ফসলের খেত পোকামুক্ত হয়। এতে যে কেবলই অর্থ সাশ্রয় হয়েছে তাই নয়, কীটনাশকের বিষে আক্রান্তর ভয় থেকেও রক্ষা পেয়েছেন। এরপরও যদি ফসল হানিকর পোকা রয়ে যায় তখন কৃষি বিভাগের পরামর্শ নিয়ে  পোকা নিরুপণ করে নির্দিষ্ট মাত্রার কীটনাশক ব্যবহার করলে বাকি থাকা পোকা শেষ হয়ে যায়। এতে কৃষকের খরচ কমে গেছে। সেই সাথে পরিবেশও দূষণমুক্ত থাকছে।

সাধারনত জমির পাশেই একটি পাত্রে পানির মধ্যে কেরোসিন ঢেলে অথবা সাবানের  ফেনা তৈরি করে তার এক ফিট উপরে আলোর ব্যবস্থা করা হয়। পোকা-মাকড় আলোর কাছে এসেই পানিতে পড়ে আর উঠতে পারে না। মরে যাওয়া বা পানিতে পড়া পোকা-মাকড় দেখেই বোঝা যায় জমিতে কি ধরনের পোকা আক্রমন করেছে।  সে অনুযায়ী কৃষকদেরকে পরামর্শ দেয় কৃষি বিভাগ।’

নেইমারকে ফেরাতে সম্ভাব্য সবকিছুই করেছে বার্সেলোনা

ক্রীড়া প্রতিবেদক ॥ এ বছরের গ্রীষ্মকালীন দল-বদলে পিএসজি থেকে নেইমারকে কাম্প নউয়ে ফেরাতে বার্সেলোনা সম্ভাব্য সবকিছুই করেছে বলে দাবি করেছেন দলটির চিফ এক্সিকিউটিভ অস্কার গ্রাউ। তবে ব্রাজিলের তারকা ফরোয়ার্ডকে পিএসজি কখনোই ছাড়তে চায়নি বলে মনে করেন এই কর্মকর্তা। গত মৌসুম শেষের পর থেকেই নেইমারের বার্সেলোনায় ফেরার সম্ভাবনা নিয়ে গুঞ্জন চলছিল। নিজেও ক্লাব ছাড়ার ইচ্ছা প্রকাশ করেছিলেন নেইমার। দল-বদলের সময় বার্সেলোনার সঙ্গে একাধিক আলোচনা কথা সংবাদমাধ্যমে স্বীকার করেন পিএসজির স্পোর্টিং ডিরেক্টর লিওনার্দো। ২০১৭ সালের আগস্টে রেকর্ড ২২ কোটি ২০ লাখ ইউরো ট্রান্সফার ফিতে প্যারিসের ক্লাবটিতে যোগ দেওয়া নেইমারকে দলে ফেরানোর মতো উপযুক্ত প্রস্তাব লা লিগা চ্যাম্পিয়নরা দেয়নি বলেও জানান তিনি। ২৭ বছর বয়সী নেইমারের দল-বদল নিয়ে সমঝোতায় না পৌঁছাতে পারার জন্য পিএসজির অনিচ্ছাকে কারণ বলে মনে করেন গ্রাউ। “নেইমারকে পেতে আমরা খুব চেষ্টা করেছিলাম।” “সম্ভাব্য সবকিছুই আমরা করেছিলাম। আমরা দুটো প্রস্তাব দিয়েছিলাম, খেলোয়াড়দের যোগ করে একটা এবং খেলোয়াড়দের বাদে একটা। কিন্তু আমাদের মনে হয়েছে পিএসজি কখনোই তাকে বিক্রি করতে চায়নি।” ভবিষ্যৎ নিয়ে অনিশ্চয়তা থাকায় চলতি মৌসুমে পিএসজির প্রথম পাঁচটি ম্যাচে দলে ছিলেন না নেইমার। গত শনিবার লিগ ওয়ানে স্ত্রাসবুরের বিপক্ষে ম্যাচ দিয়ে প্রথমবারের মতো মাঠে নামেন বিশ্বের সবচেয়ে দামি এই ফুটবলার। দ্বিতীয়ার্ধের যোগ করা সময়ে দারুণ এক বাই-সাইকেল কিকে তার করা একমাত্র গোলে ম্যাচটি জিতে লিগ ওয়ান চ্যাম্পিয়নরা। তবে ম্যাচ জুড়েই তাকে দুয়ো দেয় পিএসজি সমর্থকরা।

দুঃসময়ে খেতে দেওয়া সেই মেয়েদের খোঁজে রোনালদো

ক্রীড়া প্রতিবেদক ॥ ফুটবল প্রতিভায় আজ তিনি বিশ্বসেরা। ক্যারিয়ারে টানা দুবছর হয়েছেন বিশ্বের সবচেয়ে বেশি আয় করা অ্যাথলেট। কিন্তু একটা সময় ছিল যখন কেউ তাকে চিনতো না, দুবেলা কি খাবেন-তা নিয়ে ভাবতে হতো। পেছনে ফেলে আসা কষ্টের সে স্মৃতি ভোলেননি আজকের বিশ্বসেরা ক্রিস্তিয়ানো রোনালদো, বরং খুঁজে ফিরছেন সেই ছোট্ট বেলায় তাকে বার্গার খেতে দেওয়া ম্যাকডোনাল্ডসের ‘সেলসগার্ল’ এদনা ও তার সঙ্গে থাকা অন্য দুই মেয়েকে। সম্প্রতি ‘গুড মর্নিং ব্রিটেন’ নামের এক টিভি অনুষ্ঠানের জন্য পিয়ার্স মর্গ্যানকে দেওয়া সাক্ষাৎকারে বিভিন্ন বিষয় নিয়ে কথা বলেন রোনালদো। দৃঢ় প্রত্যয়ে জানান ক্যারিয়ারে আগামীর লক্ষ্যের কথা। আবার ছোট্ট বেলায় হারানো বাবার সঙ্গে একটি ভিডিও দেখে কেঁদে ফেলেন রোনালদো। দীর্ঘ এই সাক্ষাৎকারে উঠে আসে তার ছোট বেলার কথা যখন তার বয়স ১১-১২ বছর। “আমি যখন শিশু ছিলাম, ১১ বা ১২ বছর বয়স। আমাদের অর্থ ছিল না। লিসবনে আমরা সবাই এক জায়গাতেই থাকতাম যেমনটা অন্য খেলোয়াড়রাও থাকতো। তরুণ খেলোয়াড়রা।“ “প্রতি তিন মাসে আমি আমার পরিবারের সঙ্গে দেখা করতে যেতাম। বিষয়টা কষ্টের ছিল। পরিবার ছাড়া খুব কষ্টের একটা সময়।” “রাত সাড়ে ১০টা বা ১১টার দিকে আমাদের ক্ষুধা পেতো। স্টেডিয়ামে আমরা যেখানে থাকতাম তার পাশেই ম্যাকডোনাল্ডস ছিল। সবসময় আমরা পেছন দিয়ে গিয়ে দরজায় নক করতাম, “হেই, কিছু বার্গার কি বেঁচে গেছে?” “এদনা ও আরও দুজন মেয়ে, ওরা অবিশ্বাস্য রকমের ভালো ছিল। আমি ওই মেয়েদেরকে আর কখনও খুঁজে পাইনি। ওই মেয়েদেরকে খুঁজতে আমি পর্তুগালে কিছু মানুষের সঙ্গে কথা বলেছি, কিন্তু খুঁজে পাইনি।” “তারা ওই ম্যাকডোনাল্ডসটা বন্ধ করে দিয়েছিল। তবে আমি আশা করি, এই সাক্ষাৎকার ওই মেয়েদের খুঁজে পেতে সাহায্য করবে। আমি তাদের তুরিনে অথবা লিসবনে আমার সঙ্গে ডিনারে নিমন্ত্রণ করতে চাই কারণ আমি তাদের কিছুটা ফিরিয়ে দিতে চাই।”

স্পেনের হয়ে খেলতে বাধা রইলো না বার্সা বিস্ময় ফাতির

ক্রীড়া প্রতিবেদক ॥ বার্সেলোনার হয়ে ক্যারিয়ারের শুরুতেই সাড়া জাগানো আনসু ফাতিকে স্পেন দলে টানতে বেশ কিছুদিন ধরে চেষ্টা করে যাচ্ছে দেশটির ফুটবল ফেডারেশন। সে লক্ষ্যে বড় একটা ধাপ পেরিয়েছে তারা। স্প্যানিশ নাগরিকত্ব পেয়ে যাওয়ায় আন্তর্জাতিক ফুটবলে তরুণ এই ফরোয়ার্ডের খেলতে আর কোনো বাধা রইলো না। সংবাদমাধ্যমের খবর মতে, জন্মভূমি গিনি-বিসাওয়ের এর পাশাপাশি পর্তুগালের হয়েও খেলার সুযোগ আছে গত মঙ্গলবার বরুসিয়া ডর্টমুন্ডের বিপক্ষে ম্যাচে বার্সেলোনার হয়ে সবচেয়ে কম বয়সে চ্যাম্পিয়ন্স লিগে খেলার রেকর্ড গড়া ফাতির। তবে আপাত দৃষ্টিতে মনে হচ্ছে, জন্মভূমি বা পর্তুগাল নয়, বরং বর্তমান আবাসস্থল স্পেনের হয়েই খেলার সিদ্ধান্ত নিয়েছেন ফাতি। ছয় বছর বয়সে স্বপরিবারে দেশটিতে পাড়ি জমিয়েছিলেন তিনি। নিয়মানুযায়ী স্পেনের নাগরিকত্ব পেতে দেশটিতে ১০ বছর থাকতে হয়। আর সেই মেয়াদ পূরণ হওয়ার পর তার আবেদনের প্রেক্ষিতে জরুরি ভিত্তিতে পুরো প্রক্রিয়া সারা হয়েছে। কেননা অনূর্ধ্ব-১৭ বিশ্বকাপের দল ঘোষণার শেষ দিন আগামী বুধবার। স্প্যানিশ সংবাদমাধ্যমের খবর অনুযায়ী, অক্টোবরে শুরু হতে যাওয়া এই টুর্নামেন্টে ফাতিকে দলে পেতে মরিয়া স্পেন। স্পেনের প্রধান কোচ রবের্ত মোরেনো গত সপ্তাহে জানিয়েছিলেন যে ফাতির বিষয়ে প্রয়োজনীয় কাগজপত্র পেতে কাজ করছে দেশটির ফুটবল ফেডারেশন। তবে মূল সিদ্ধান্তটা এই খেলোয়াড়ের নিজেকেই নিতে হবে বলে তখন জানিয়েছিলেন তিনি। গত ২৫ আগস্ট লা লিগায় রিয়াল বেতিসের বিপক্ষে ম্যাচের শেষ দিকে বদলি হিসেবে বার্সেলোনার হয়ে অভিষেক হয় ফাতির। এর পরের সপ্তাহে ওসাসুনার বিপক্ষে দ্বিতীয়ার্ধের শুরুতে বদলি নেমে বার্সেলোনার হয়ে স্পেনের শীর্ষ লিগে সবচেয়ে কম বয়সী খেলোয়াড় হিসেবে গোলের রেকর্ড গড়েন তিনি। আর গত শনিবার ভালেন্সিয়ার বিপক্ষে শুরুর একাদশে সুযোগ পেয়েই ম্যাচের দ্বিতীয় মিনিটে দলকে এগিয়ে দিয়ে লা লিগার ইতিহাসে সবচেয়ে কম বয়সী খেলোয়াড় হিসেবে কোনো ম্যাচে গোল করা ও সতীর্থের গোলে অবদান রাখেন ফাতি। অভিষেকের কদিনের মধ্যে পাদপ্রদীপের আলোয় উঠে আসা ফাতি টানা তিন ম্যাচে গড়েছেন তিনটি রেকর্ড। আগামী ৩১ অক্টোবর ১৭ বছর পূর্ণ করতে যাওয়া ফাতির সামনে চ্যালেঞ্জ এবার আরও বড়।

ফাইনালের আগে আফগানিস্তানকে হারিয়ে আত্মবিশ্বাসী হতে চায় বাংলাদেশ

ক্রীড়া প্রতিবেদক ॥ নিজেদের তৃতীয় ম্যাচে জিম্বাবুয়েকে হারিয়ে ইতোমধ্যেই ত্রিদেশীয় টি-২০ সিরিজের ফাইনাল নিশ্চিত করেছে স্বাগতিক বাংলাদেশ। ফলে লিগ পর্বের এক ম্যাচ বাকী থাকতেই ফাইনালের টিকিট পায় টাইগাররা। ফাইনালে বাংলাদেশের প্রতিপক্ষ শক্তিশালী আফগানিস্তান। এমনকি লিগ পর্বের শেষ ম্যাচেও টাইগারদের প্রতিপক্ষ আফগানরা। তাই ফাইনালের আগে আজ আফগানিস্তানকে হারিয়ে আরো আত্মবিশ্বাসী হয়ে উঠতে বদ্ধ পরিকর বাংলাদেশ। চট্টগ্রামের জহুর আহমেদ চৌধুরি স্টেডিয়ামে আগামীকাল সন্ধ্যা ৬টা ৩০ মিনিটে লিগ পর্বের ষষ্ঠ ও শেষ ম্যাচে লড়বে বাংলাদেশ-আফগানিস্তান। জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে জয় দিয়ে ত্রিদেশীয় সিরিজ শুরু করেছিলো বাংলাদেশ। কিন্তু নিজেদের দ্বিতীয় ম্যাচে আফগানিস্তানের কাছে লজ্জার হারের স্বাদ পেতে হয় টাইগারদের। ২৫ রানে ম্যাচ হারে বাংলাদেশ। অর্থাৎ লিগে প্রথম পর্বে একটি করে ম্যাচে জয় ও হারের স্বাদ নেয় সাকিবের দল। ফিরতি পর্বে আবারো জিম্বাবুয়েকে হারিয়ে ফাইনাল নিশ্চিত করে ফেলে বাংলাদেশ। কারণ ৩ ম্যাচে ২টি জয়ে ৪ পয়েন্ট অর্জন করে বাংলাদেশ। প্রথম দু’ম্যাচে ২ জয়ে ৪ পয়েন্ট ছিলো আফগানিস্তানেরও। আর ৩ ম্যাচে সবগুলোতে কোন পয়েন্ট ছাড়াই সিরিজ থেকে বিদায় নিশ্চিত হয়ে যায় জিম্বাবুয়ের। কেননা বাকি ম্যাচে (আজ) আফগানিস্তানের বিপক্ষে জয়ী হলেও কোন লাভ হচ্ছেনা জিম্বাবুয়ের। ফিরতি পর্বে বাংলাদেশের কাছে হেরে টুর্নামেন্ট থেকে নিজেদের বিদায় নিশ্চিত করে ফেলে জিম্বাবুয়ে। আফগানিস্তানকে নিয়ে ফাইনালে উঠে বাংলাদেশ। ফাইনালের আগে ফিরতি পর্বেও আফগানিস্তানের বিপক্ষে খেলতে হবে বাংলাদেশকে। শিরোপা লড়াইয়ে নামার আগে আফগানদের বিষয়ে আরও ধারনা পাবার সুযোগ পেল টাইগাররা। তবে এ ম্যাচ জিতে ফাইনালের আগে আত্মবিশ্বাস হবার সুযোগ রয়েছে বাংলাদেশের। তাই ফাইনালের আগে লিগ পর্বে আফগানিস্তানকে হারাতে মরিয়া বাংলাদেশ। জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে ম্যাচের পর এমনটাই জানিয়েছিলেন ডান-হাতি ব্যাটসম্যান মাহমুদুল্লাহ রিয়াদ। তিনি বলেন, ‘আমাদের পরবর্তী লক্ষ্য হচ্ছে ফাইনালের আগে লিগ পর্বে আফগানিস্তানের বিপক্ষেও প্রভাব বিস্তার করে খেলে জয় তুলে নেয়া। যা আমাদেরকে আরো বেশি আত্মবিশ্বাসী করে তুলবে। আমাদের মনে রাখা প্রয়োজন, র‌্যাংকিংয়ে তারা আমাদের উপরে আছে। আমাদের জিততে হলে সেরা ক্রিকেটটাই খেলতে হবে। পরের ম্যাচের জন্য আমাদের আত্মবিশ্বাস দরকার যাতে আমরা ম্যাচটিতে ভাল খেলতে পারি। আর ফাইনালে সেটিই আমাদের এগিয়ে রাখবে।’ জয়ের লক্ষ্যের সাথে লিগ পর্বের শেষ ম্যাচে নিজেদের রির্জাভ বেঞ্চ ঝালাই করে নিতে পারে বাংলাদেশ। ইতোমধ্যে ইনজুরিতে পড়েছেন জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে ম্যাচে অভিষেক হওয়া স্পিনার আমিনুল ইসলাম। তাই আফগানিস্তানের বিপক্ষে অনিশ্চিত তিনি। জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে বোলিং করে ফলো থ্রোতে বল ধরতে গিয়ে আঙ্গুলে ব্যাথা পান আমিনুল। পরে তিনটি সেলাই দিতে হয়েছে তার আঙ্গুলে। আমিনুল বলেন, ‘মাসাকাদজার স্ট্রেইট ড্রাইভ করা একটি বল আমি থামাতে চেয়েছিলাম। কিন্তু পারিনি। বলটি আমার হাতে লাগে, ব্যাথা পাওয়ায় পরবর্তীতে হাতে সেলাই করতে হয়েছে।’ আফগানিস্তানের বিপক্ষে নিজের খেলা অনিশ্চিত জানিয়ে আমিনুল, ‘আল্লাহর রহমতে আমি এখন ভাল বোধ করছি। ব্যথা অনেকটাই কমেছে। অবশ্য পরবর্তী ম্যাচে আমি খেলতে পারব কি-না জানি না। এই মূর্হুতে আমি ফিজিওর নির্দেশনা মেনে চলছি।’ আমিনুলের ব্যাপারে বাংলাদেশের প্রধান নির্বাচক মিনহাজুল আবেদীন নান্নু বলেন, ‘এইচপি দলে খেলার সময় ব্যাথা পেয়েছিলো আমিনুল। একই স্থানে পুনরায় ব্যাথা পাওয়ায় সমস্যা সৃষ্টি হয়েছে। পরের ম্যাচে তার খেলার বিষয়ে ফিজিও ভালো বলতে পারবে।’ বাংলাদেশের মত ফাইনালের আগে জয় পেতে মুখিয়ে থাকবে আফগানিস্তানও। কারন টি-২০ ইতিহাসে টানা ১২ ম্যাচ জিতে বিশ্বরেকর্ডের মালিক এখন তারা। তাই এই বিশ্বরেকর্ডের পথটা আরও লম্বা করতে চাইবে আফগানরা। অবশ্য ফাইনালের আগে দু’টি ম্যাচ পাচ্ছে আফাগিনস্তান। বাংলাদেশের বিপক্ষে ম্যাচের আগে আজ জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে খেলতে নামবে রশিদের দল। ফলে ফাইনালের আগে নিজেদের ভালোভাবেই ঝালিয়ে নিতে পারবে আফগানিস্তান।

তবে আফগানিস্তানের বিপক্ষে টি-২০তে বাংলাদেশের সাফল্য মোটেও ভালো নয়। পাঁচবারের দেখায় তিনবারই হার টাইগারদের। গেল বছর জুনে তিন ম্যাচের টি-২০ সিরিজে আফগানদের কাছে হোয়াইটওয়াশ হয়েছিলো বাংলাদেশ। বাংলাদেশ দল : সাকিব আল হাসান (অধিনায়ক), মুশফিকুর রহিম, মাহমুদুল্লাহ রিয়াদ, সাব্বির রহমান, মোসাদ্দেক হোসেন, লিটন দাস, মুস্তাফিজুর রহমান, মোহাম্মদ সাইফউদ্দিন, আফিফ হোসেন, তাইজুল ইসলাম, রুবেল হোসেন, শফিউল ইসলাম, নাঈম শেখ, আমিনুল ইসলাম ও নাজমুল হোসেন শান্ত। আফগানিস্তান একাদশ : রশিদ খান (অধিনায়ক), আসগর আফগান, দাওলাত জাদরান, ফরিদ আহমেদ, ফজল নিয়াজাই, গুলবাদিন নাইব, হযরতউল্লাহ জাজাই, করিম জানাত, মোহাম্মদ নবী, মুজিব উর রহমান, নাজিব তারাকাই, নাজিবুল্লাহ জাদরান, নাভিন উল হক, রহমনউল্লাহ গুরবাজ, শফিকুল্লাহ, শহিদুল্লাহ ও শরফুদ্দিন আশরাফ।