মিরপুর উপজেলা কৃষকদলের কমিটি গঠন

বাংলাদেশ জাতীয়তাবাদী কৃষকদলের মিরপুর উপজেলা শাখা কমিটি গঠন করা হয়েছে। গতকাল কৃষকদলের কুষ্টিয়া জেলা শাখার আহবায়ক এসএম গোলাম কবির মিরপুর উপজেলা বিএনপির সভাপতি আব্দুল হকসহ মিরপুর নেতৃবৃন্দের সুপারিশের পরিপেক্ষিতে এই কমিটি অনুমোদন দেয়। মোঃ আনছার আলীকে সভাপতি, আব্দুর রশিদ (আরজু বিশ্বাস)কে সিনিয়র সহ সভাপতি, মোঃ আকরাম আলী মল্লিককে সাধারণ সম্পাদক, মোঃ আবুল হোসেনকে সিনিয়র যুগ্ম-সম্পাদক ও মোঃ সেকেন্দার আলীকে সাংগঠনিক সম্পাদক করে ৭১সদস্য বিশিষ্ট বাংলাদেশ জাতীয়তাবাদী কৃষকদলের মিরপুর উপজেলা শাখার কমিটি গঠন করা হয়েছে। নেতৃবৃন্দ মনে করে আগামী দিনের আন্দোলন সংগ্রামে নব গঠিত কমিটি গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করবে এবং দেশনেত্রী বেগম খালেদা জিয়ার মুক্তির আন্দোলন ও দলকে সু-সংগঠিত করবে। সংবাদ বিজ্ঞপ্তি

ঝিনাইদহে শুদ্ধ বানানে শুদ্ধ উচ্চারণে বিষয়ক কর্মশালা

ঝিনাইদহ প্রতিনিধি ॥ ঝিনাইদহে ‘সর্বস্তরে বাংলা ভাষা: শুদ্ধ বানানে শুদ্ধ উচ্চারণে’ বিষয়ক কর্মশালা অনুষ্ঠিত হয়েছে। গতকাল রোববার দুপুরে জেলা প্রশাসকের সম্মিলন কক্ষে এ কর্মশালার আয়োজন করে ছায়ানীড় সংগঠনের ভাষা গবেষনা বিভাগ। এসময় জেলা প্রশাসক সরোজ কুমার নাথ, ছায়ানীড়’র সভাপতি ড. এমএ ইউসুফ খান, নির্বাহী পরিচালক অধ্যাপক মো. লুৎফর রহমান, জেলা পরিষদের সচিব রেজাই রাফিন সরকার, সরকারি কেসি কলেজের অধ্যক্ষ প্রফেসর ড. বি এম রেজাউল করিম, অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (সার্বিক) আরিফ-উজ জামান, সিভিল সার্জন ডা:  সেলিনা বেগম, সিও সংস্থার নির্বাহী পরিচালক সামসুল আলমসহ জেলার বিভিন্ন সরকারি দপ্তরের কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন। বক্তারা, সর্বস্তরে বাংলাভাষা চালুর জন্য সকল সরকারি কর্মকর্তাদের আরও আন্তরিক হওয়ার পাশাপাশি শিক্ষার্থীদের বই পড়ার প্রতি মনোযোগী করে গড়ে তোলার আহ্বান জানান।

সৌদিতে ড্রোন হামালার জন্য দায়ী ইরান – যুক্তরাষ্ট্র

ঢাকা অফিস ॥ সৌদি আরবের তেল শিল্পক্ষেত্রে হামলার জন্য সরাসরি ইরানকে দায়ী করেছেন মার্কিন পররাষ্ট্রমন্ত্রী মাইক পম্পেও। শনিবারের হামলায় ইয়েমেনের সংশ্লিষ্টতা উড়িয়ে দিয়ে তিনি ইরানকে দায়ী করেছেন, পাশাপাশি তেহরানের কূটনৈতিক ‘ভানের’ নিন্দাও করেছেন বলে জানিয়েছে বার্তা সংস্থা রয়টার্স। ইয়েমেনের ইরানঘনিষ্ঠ হুতিরা সৌদি আরবের তেল শিল্পের কেন্দ্রস্থলের দুটি প্লান্টে ড্রোন হামলার দায় স্বীকার করেছে। আক্রান্ত দুটি প্লান্টের একটিতে বিশ্বের সর্ববৃহৎ তেল শোধনাগার রয়েছে। এ হামলায় সৌদির তেল উৎপাদন কমে অর্ধেক হয়ে গেছে বলে জানিয়েছে আন্তর্জাতিক গণমাধ্যম। হুতিরা দায় স্বীকার করলেও টুইটারে পম্পেও বলেছেন, হামলাগুলো ইয়েমেন থেকে হয়েছে এর কোনো প্রমাণ নেই। “রুহানি আর জারিফ যখন কূটনীতিতে ব্যস্ত থাকার ভান করছেন তখন তেহরান সৌদি আরবে প্রায় ১০০টি হামলা চালিয়েছে। উত্তেজনা নিরসনের এত আহ্বানের পরও ইরান বিশ্বের জ্বালানি সরবরাহে নজিরবিহীন আঘাত হেনেছে। আমরা বিশ্বের সব দেশকে প্রকাশ্যে ও দ্ব্যর্থহীনভাবে ইরানি হামলার নিন্দা জানানোর আহ্বান জানাচ্ছি,” বলেছেন তিনি। মিত্রদের সঙ্গে নিয়ে ট্রাম্প প্রশাসন ইরানকে তার ‘আগ্রাসী ভূমিকার জন্য জবাবদিহি’ করতে কাজ করছে বলেও জানিয়েছেন মার্কিন পররাষ্ট্রমন্ত্রী। রয়টার্স জানিয়েছে, পম্পেও এসব দাবি করলেও তার দাবির স্বপক্ষে প্রমাণ দিতে রাজি হয়নি মার্কিন পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়। বছরখানেকেরও বেশি সময় ধরে যুক্তরাষ্ট্র-ইরানের মধ্যে উত্তেজনা বৃদ্ধির পর সম্প্রতি কূটনৈতিক যোগাযোগের পথ উন্মোচিত হওয়ার যে সামান্য আভাস দেখা গিয়েছিল পম্পেওর টুইটে তার উল্টো সুর দেখা যাচ্ছে বলে ভাষ্য পর্যবেক্ষকদের। মার্কিন পররাষ্ট্রমন্ত্রীর টুইট তেহরানের প্রতি ওয়াশিংটনের কট্টর অবস্থানেরই ইঙ্গিত, বলছেন তারা।   সম্প্রতি জাতিসংঘ সাধারণ পরিষদের অধিবেশনের সাইডলাইনে ইরানের প্রেসিডেন্ট হাসান রুহানির সঙ্গে বৈঠকে আগ্রহ দেখিয়েছিলেন মার্কিন প্রেসিডেন্ট। এ ধরনের বৈঠক কোনো পূর্বশর্ত ছাড়াই হতে হবে বলে শর্ত জুড়ে দিয়েছিলেন পররাষ্ট্রমন্ত্রী পম্পেও। অন্যদিকে নিষেধাজ্ঞা প্রত্যাহারের আগ পর্যন্ত তার দেশ যুক্তরাষ্ট্রের সঙ্গে কোনো ধরনের বৈঠকে বসবে না বলে জানিয়েছেন রুহানি। ট্রাম্পের ঘনিষ্ঠ হিসেবে পরিচিত, মার্কিন সিনেটের বৈদেশিক সম্পর্ক বিষয়ক কমিটির সদস্য লিন্ডসে গ্রাহাম বলেছেন, ইরান যে শান্তিতে নয়, উল্টো পারমাণবিক অস্ত্র এবং মধ্যপ্রাচ্যের কর্তৃত্ব নিতে বেশি আগ্রহী শনিবারের হামলাই তার নজির। “ইরান যদি এ ধরনের উস্কানি কিংবা তাদের পারমাণবিক সমৃদ্ধি অব্যাহত রাখে, তাহলে তাদের তেল শোধনাগারে হামলার বিষয়টি ভাবার সময় হয়েছে যুক্তরাষ্ট্রের,” বলেছেন তিনি। মার্কিন কংগ্রেসের অনেক সদস্য অবশ্য পম্পেওর অভিযোগ নিয়েও সন্দেহ প্রকাশ করেছেন। “এটা এক ধরনের দায়িত্বজ্ঞানহীন সরল বক্তব্য আর এভাবেই আমরা অহেতুক যুদ্ধে জড়িয়ে যাই। ইরান হুতিদের সমর্থন দিচ্ছে এবং তারা খারাপ পক্ষ; কিন্তু এর মানে এত সরল নয় যে হুতি আর ইরানকে এক করে দেখতে হবে,” বলেছেন মার্কিন সিনেটের  বৈদেশিক সম্পর্ক বিষয়ক কমিটির ডেমোক্রেট সদস্য ক্রিস মারফি। গতবছর যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট ডনাল্ড ট্রাম্প ওয়াশিংটনকে ২০১৫ সালে স্বাক্ষরিত ইরান পরমাণু চুক্তি থেকে বের করে আনলে ওয়াশিংটন-তেহরান উত্তেজনার পারদ ফের চড়তে শুরু করে। এরপর পুরনো সব নিষেধাজ্ঞা পুনর্বহাল করার পাশাপাশি ইরানের উপর একের পর এক নিষেধাজ্ঞা জারি করে ট্রাম্প প্রশাসন, যা ইরানের অর্থনীতিকে অনেকখানিই পঙ্গু করে দিয়েছে বলে ধারণা বিশ্লেষকদের। এতে দেশ দুটির মধ্যে বিদ্যমান উত্তেজনা চরম আকার ধারণ করে।

সেবার মান বৃদ্ধি করে জনগণকে কর প্রদানে উৎসাহিত করার আহ্বান এলজিআরডি মন্ত্রীর

ঢাকা অফিস ॥ স্থানীয় সরকার, পল্লী উন্নয়ন ও সমবায় মন্ত্রী মোঃ তাজুল ইসলাম সেবার মান বৃদ্ধি করে জনগণকে নির্ধারিত কর প্রদানে উৎসাহিত করতে পৌরসভার মেয়রদের প্রতি আহ্বান জানিয়েছেন। তিনি গতকাল রোাববার সকালে রাজধানীর জনস্বাস্থ্য প্রকৌশল অধিদপ্তরের অডিটোরিয়ামে পৌরসভার মেয়রবৃন্দের সাথে এক মতবিনিময় সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে এ আহ্বান জানান। মন্ত্রী বলেন, জনগণকে যথাযথ সেবা দিতে পারলে মানুষ কর দিতে উৎসাহিত হবে। তার মাধ্যমেই দেশ উন্নয়নের অভীষ্ট লক্ষ্যে এগিয়ে যাবে। তিনি বলেন, উন্নত বিশ্বে স্থানীয় সরকার প্রতিষ্ঠানগুলো স্বাবলম্বী। তারা নিজেদের ট্যাক্সের টাকায় ব্যয় নির্বাহ করে। কেন্দ্রীয় সরকার থেকে তাদের খুব কম ভর্তুকি দেয়া লাগে। কিন্তু বাংলাদেশের ইউনিয়ন পরিষদ, পৌরসভা, উপজেলা পরিষদ ও জেলা পরিষদ এখনো সে পর্যায়ে যেতে পারেনি। কাজেই মানুষকে ট্যাক্স ও ভ্যাটের উপকারিতা সর্ম্পকে বোঝাতে হবে। মন্ত্রী বলেন, দেশে বিভিন্ন রাজনৈতিক, সামাজিক, অর্থনৈতিক ও পরিবেশগত সমস্যা আছে। এ সকল প্রতিকূলতা দূর করতেই জনপ্রতিনিধি নির্বাচন করা হয়। কাজেই সাহসের সাথে ধৈর্য্য ধরে মানুষের জন্য কাজ করে যেতে হবে। স্থানীয় সরকার বিভাগের সচিব হেলালুদ্দীন আহমদের সভাপতিত্বে মতবিনিময় সভায় উপস্থিত ছিলেন স্থানীয় সরকার বিভাগের অতিরিক্ত সচিব মাহবুব হোসেন, বাংলাদেশ পৌরসভা সমিতির সভাপতি দেওয়ান কামাল আহমেদ, সাধারণ সম্পাদক মোঃ রফিকুল ইসলামসহ দেশের ৩২৮টি পৌরসভার মেয়র এবং মন্ত্রণালয়ের উর্ধ্বতন কর্মকর্তাবৃন্দ। মতবিনিময় সভায় মেয়ররা তাদের স্ব স্ব পৌরসভার বিভিন্ন সমস্যা ও দাবীর কথা তুলে ধরেন। এ সময় তাদের পক্ষ থেকে লিখিতভাবে বিভিন্ন সুযোগ-সুবিধা ও দাবী-দাওয়া মন্ত্রীর কাছে হস্তান্তর করা হয়। এ ব্যাপারে মন্ত্রী বলেন, একদিনে সব সমস্যা সমাধান করা সম্ভব নয়। পর্যায়ক্রমে এগুলো সমাধান করা হবে।

চাঁদাবাজির প্রমাণ পেলেই ছাত্রলীগ থেকে বহিষ্কার – ভারপ্রাপ্ত সভাপতি

ঢাকা অফিস ॥ চাঁদাবাজির অভিযোগে ছাত্রলীগের দুই শীর্ষনেতা বাদ পড়ায় ভারপ্রাপ্ত সভাপতির দায়িত্ব পাওয়া আল নাহিয়ান খান জয় এ বিষয়ে সংগঠনের নেতা-কর্মীদের হুঁশিয়ার করেছেন। তিনি বলেছেন, “কারও বিরুদ্ধে যদি চাঁদাবাজি বা টেন্ডারবাজির অভিযোগের প্রমাণ পাই এবং তারা যদি ছাত্রলীগের সুনাম নষ্ট করে, তাহলে সাথে সাথেই তাদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়া হবে।” গতকাল রোববার ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের মধুর ক্যান্টিনে ভারপ্রাপ্ত সাধারণ সম্পাদক লেখক ভট্টাচার্য্যকে পাশে রেখে এক সংবাদ সম্মেলনে একথা বলেন নাহিয়ান। চাঁদাবাজির কয়েকটি ঘটনায় অভিযোগের মুখে ছাত্রলীগ সভাপতি রেজওয়ানুল হক চৌধুরী শোভন এবং সাধারণ সম্পাদক গোলাম রাব্বানীকে শনিবার নেতৃত্ব ছাড়তে হয়। কমিটির মেয়াদের প্রায় এক বছর বাকি থাকতে দুই শীর্ষনেতার বিদায়ে ১ নম্বর সহ-সভাপতি নাহিয়ান ছাত্রলীগের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি এবং ১ নম্বর যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক লেখক ভারপ্রাপ্ত সাধারণ সম্পাদকের দায়িত্ব নিয়েছেন। দায়িত্ব নেওয়ার পর রোববার দুপুরে মধুর ক্যান্টিনে প্রথম সংবাদ সম্মেলনে আসেন তারা। নাহিয়ান বলেন, “প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশে ছাত্রলীগকে পরিচালিত করব। তিনি যেভাবে বলবেন, ঠিক সেইভাবে ছাত্রলীগ চলবে। কোনো ধরনের কালিমা আমাদের গায়ে যেন না লাগে, সে জন্য আমরা সব সময় সচেষ্ট থাকব।” নিজেদের কর্মপরিকল্পনার বিষয়ে ভারপ্রাপ্ত সভাপতি বলেন, “একটা ছক আঁকব। সেই ছক অনুযায়ী বাকি যে ১০ মাস সময় আছে.. আমাদের যেসব কমিটি বিলুপ্ত হয়েছে বা যেসব কমিটি মেয়াদোত্তীর্ণ হয়েছে, সেগুলো বিলুপ্ত করে সুন্দর ও যুগোপযোগী ছাত্রলীগ গড়ে তুলব।” ভারপ্রাপ্ত সাধারণ সম্পাদক লেখক কমিটির সদস্যদের আশ্বস্ত করে বলেছেন, শোভন-রাব্বানীর সঙ্গে যারা কাজ করছেন, তাদের কাউকে ‘বঞ্চিত’ করা হবে না। “শোভন-রাব্বানীর কমিটিতে যারা কাজ করেছে, তারাও ভালো কাজ করেছেন। তবে যেহেতু কিছু অভিযোগ এসেছে আমরা সেগুলো আবার হতে দেব না। তবে যারা ছাত্রলীগের জন্য ত্যাগ স্বীকার করেছেন, তাদের কাউকে বঞ্চিত করা হবে না।” তিনি বলেন, “ইতিহাস এবং ঐতিহ্যের সঙ্গে তাল মিলিয়ে আমরা ছাত্রলীগকে একটি ব্যানারের নিচে দাঁড় করাতে চাই। এখানে অমুক-তমুকের ছাত্রলীগ বলে কিছু নেই। ছাত্রলীগ একটাই, সেটা হচ্ছে শেখ হাসিনার ছাত্রলীগ।” লেখক বলেন, “আমাদের প্রথম কাজ হচ্ছে শোভন-রাব্বানীর বিরুদ্ধে যেসব অভিযোগ উঠেছে, সেগুলো ওভারকাম করা। তাদের বিরুদ্ধে যেসব অভিযোগ আসছে, সেগুলো যেন আমাদের বিরুদ্ধে না আসে।” পরবর্তী সম্মেলনকে সবচেয়ে বড় চ্যালেঞ্জ হিসাবে উল্লেখ করেন লেখক। তিনি বলেন, “শেখ হাসিনা আমাদের ছাত্রলীগের দায়িত্ব দিয়েছেন। এই মুহূর্তে এটি আমাদের জন্য চ্যালেঞ্জ। তবে আমরা মনে করি, যত চ্যালেঞ্জই আসুক, সব মোকাবিলা করে বঙ্গবন্ধুর হাতে গড়া সংগঠন ছাত্রলীগকে আমরা এগিয়ে নিয়ে যাব।” আজ সোমবার সকাল ১১টায় ধানমন্ডির ৩২ নম্বর সড়কে বঙ্গবন্ধুর প্রতিকৃতিতে শ্রদ্ধা জানিয়ে আওয়ামী লীগের সভানেত্রী ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সঙ্গে দেখা করে আনুষ্ঠানিকভাবে দায়িত্ব পালন শুরু করবেন বলে জানান নাহিয়ান ও লেখক।

সাংবাদিকদের এক প্রশ্নের জবাবে ওবায়দুল কাদের

অন্যায়-অনিয়ম করলে কাউকে ছাড় দেওয়া হবে না

ঢাকা অফিস ॥ আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক এবং সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের বলেছেন, অনিয়ম দুর্নীতির বিরুদ্ধে সরকার জিরো টলারেন্স অবস্থানে রয়েছে। অন্যায়-অনিয়ম যেই করুক কাউকে ছাড় দেওয়া হবে না। গতকাল রোববার দুপুরে নারায়ণগঞ্জের রূপগঞ্জের ভুলতা ফ্লাইওভার নির্মাণ কাজ পরিদর্শন শেষে সাংবাদিকদের এক প্রশ্নের জবাবে তিনি এসব কথা বলেন। ওবায়দুল কাদের বলেন, ‘অনিয়ম-দুর্নীতির সাথে যারা জড়িত তাদের বিরুদ্ধে সরকার ব্যবস্থা নিচ্ছে। সরকার দুর্নীতির বিরুদ্ধে জিরো টলারেন্স নীতি গ্রহণ করেছে। যে অন্যায় করবে তার বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়া হবে। কাউকে ছাড় দেয়া হবে না।’ তিনি বলেন, বাংলাদেশে এই প্রথম শৃঙ্খলা ভঙ্গের অভিযোগে ছাত্রলীগের সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদকের বিরুদ্ধে নজিরবিহীন শাস্তিমূলক ব্যবস্থা নেওয়া হলো। তাদের বিরুদ্ধে সাংগঠনিক ব্যবস্থা নেওয়া হয়েছে এবং বাধ্যতামূলক পদত্যাগ করানো হয়েছে। বাংলাদেশের অন্য কোন ছাত্র সংগঠনে এ ধরনের ব্যবস্থা গ্রহনের নজির নেই। আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক বলেন, শেখ হাসিনা নিজেই ছাত্রলীগের বর্তমান পরিস্থিতি পর্যবেক্ষণ ও দেখভাল করছেন। ছাত্রলীগের পরবর্তী সম্মেলন সম্পন্ন করতে ভারপ্রাপ্ত সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদককে তিনি দায়িত্ব দিয়েছেন। তারা আগামীতে একটি সুষ্ঠু সুন্দর সম্মেলন করার জন্য প্রস্তুতি নিবেন। জাতীয় সম্মেলন করতে আওয়ামী লীগ সম্পূর্ণ প্রস্তুত রয়েছে জানিয়ে ওবায়দুল কাদের বলেন, আমাদের কিছু জেলায়, উপজেলা ও ইউনিয়নের সম্মেলন বাকি আছে। এই সময়ের মধ্যে এসব সম্মেলন সম্পন্ন করা হবে। আগামী ২০ ও ২১ ডিসেম্বর জাতীয় সম্মেলন অনুষ্ঠিত হবে। তিনি বলেন, উপজেলা নির্বাচনে আওয়ামী লীগের বিদ্রোহী ১৭৫ জন প্রার্থীকে কারণ দর্শানোর নোটিশ দেয়া হয়েছে। এই নোটিশের জবাব পাওয়া পর বিদ্রোহী প্রার্থীদের যারা মদদ দিয়েছেন তাদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়া হবে। তাদেরকেও কারণ দর্শানোর নোটিশ দেওয়ার সিদ্ধান্ত নেওয়া হবে। প্রধানমন্ত্রী ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে ভুলতা ফ্লাইওভার উদ্বোধন করবেন জানিয়ে সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী বলেন, ৩৭৫ কোটি টাকারও বেশি টাকা ব্যয়ে ভুলতা চার লেন বিশিষ্ট ফ্লাইওভার নির্মাণ কাজ শেষ হয়েছে। জনদুর্ভোগ কমানোর জন্য এবং যানজট নিরসনে ফ্লাইওভারটি যানবাহন চলাচলের জন্য খুলে দেওয়া হয়েছে। তিনি বলেন, ঢাকা-সিলেট মহাসড়কে চার লেনের কাজের ফিজিবিলিটি ইতিমধ্যেই সম্পন্ন হয়েছে। অচিরেই ঢাকা-সিলেট মহাসড়ককে চার লেনে রূপান্তরের কাজ শুরু করা হবে। এই সড়কের চার লেনের কাজ সম্পন্ন হলে ঢাকা-সিলেট মহাসড়কে যানজট থাকবে না। পরিদর্শন কালে ভুলতা ফ্লাইওভারের প্রকল্প পরিচালক গোলাম হায়দার রিয়াজ, নারায়ণগঞ্জের পুলিশ সুপার মোহাম্মদ হারুন অর রশিদ, রূপগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মমতাজ বেগম মমো প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন।

আলমডাঙ্গায় বঙ্গবন্ধু জাতীয় গোল্ডকাপ ফুটবলের সমাপনীতে এমপি ছেলুন এমপি

‘এ’ টিম মাঠে শেখ রাসেল মিনি স্টেডিয়াম নির্মাণ করা হবে

আলমডাঙ্গা অফিস ॥ চুয়াডাঙ্গার আলমডাঙ্গা উপজেলায় জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুুজিবর রহমান গোল্ডকাপ ফুটবল টুর্নামেন্ট (অনুর্ধ-১৭) ফাইনালে হারদী ইউনিয়নকে গোল্ডেন গোলে হারিয়ে কুমারী ইউনিয়ন জয়লাভ করেছে। খেলায় প্রধান অতিথি ছিলেন চুয়াডাঙ্গা জেলা আওয়ামীলীগের সভাপতি বীর মুক্তিযোদ্ধা সোলায়মান হক জোয়ার্দার ছেলুন এমপি। তিনি বলেন আজ আমি ফুটবল খেলা দেখতে এসে অভির্ভুত, দর্শক আবারও প্রমান করল ফুটবল খেলাই সব চাইতে জনপ্রিয় খেলা। মাত্র ১ ঘন্টা ৩০ মিনিটে দর্শক যে আনন্দ উপভোগ করে তা অন্য কোন খেলায় এত দর্শক আনন্দ পায় বলে আমার জানা নেই। আজ আমি ঘোষনা দিচ্ছি আলমডাঙ্গা “এ” টিম মাঠেই শেখ রাসেল মিনি স্টেডিয়াম নির্মান করা হবে। এ বিষয়ে ইউএনওর সাথে কথা হয়েছে, কাগজপত্র দরখাস্তসহ যুব ও ক্রীড়া মন্ত্রনালয়ে পাঠানোর জন্য।  খেলোয়াড়দের উদ্দেশ্যে বলেন সুস্থ দেহ সুস্থ মন, খেলা ধুলার কোন বিকল্প নেই। তোমরা প্রতিদিন অনুশীলন না করলে দম শক্তি থাকবে না, ফুটবল খেলায় দম অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ। খেলায় হারজিত থাকবে আজ যে দল জয় লাভ করেছে, যারা হেরেছে তারা আগামিতে এই শিক্ষা কাজে লাগিয়ে তাদের পরাজিত করবে, জয়ীরা তাদের জয় ধরে রাখতে আবারও মরিয়া হয়ে খেলবে। সভায় উপজেলা নির্বাহী অফিসার মোঃ লিটন আলীর সভাপতিত্বে বিশেষ অতিথি ছিলেন উপজেলা ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান এ্যাডঃ সালমুন আহম্মেদ ডন, মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান কাজী মারজাহান নিতু, সহকারি কমিশনার ভুমি সীমা শারমিন, উপজেলা আওযামীলীগের সহসভাপতি মজিবর রহমান, ইউপি চেয়ারম্যান নুরুল ইসলাম, আবু সাইদ পিন্টু, নুরুল ইসলাম নুরু, শিক্ষা অফিসার শামসুজ্জোহা, মাধ্যমিক শিক্ষা অফিসার আব্দুল বারি, সমাজ সেবা কর্মকর্তা আফাজ উদ্দিন, যুব উন্নয়ন কর্মকর্তা আনিসুজ্জামান প্রমুখ। সাবেক ফুটবলার হামিদুল ইসলাম আজম, বীর মুক্তিযোদ্ধা হাজী শেখ নুর মোহাম্মদ জকু ও হাফিজুর রহমান জীবনের উপস্থাপনায় অন্যদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন  পৌর কাউন্সিলর, জহুরুল ইসলাম স্বপন, কাজী আলী আসগর সাচ্চু, প্রেসক্লাবের সভাপতি খন্দকার শাহ আলম মন্টু, উপজেলা ক্রীড়া সংস্থার সম্পাদক খন্দকার জিহাদী জুলফিকার টুটুল, সাবেক ফুটবলার শরিফুল ইসলাম প্রমুখ। খেলায় হারদী ইউনিয়নকে গোল্ডেন গোলে হারিয়ে কুমারি ইউনিয়ন জয়লাভ করে। খেলা পরিচালনা করেন কুষ্টিয়া থেকে আগত রেফারি দিদার আলী, সহকারি রেফারি দেলোয়ার হোসেন ও শাহিন উদ্দিন। সহকারি মহসিন কামাল, হাসান মাহমুদ ও আব্দুস সালাম। ধারাবিবরণী বীর মুক্তিযোদ্ধা শেখ নুর মোহাম্মদ জকু, হামিদুল ইসলাম আজম,  হাফিজুর রহমান জীবন। খেলা শেষে প্রধান অতিথি শ্রেষ্ট খেলোয়াড়, শ্রেষ্ঠ দর্শক, সহ বিভিন্ন রকম পুরস্কার প্রদান করেন, স্পন্সর করেন, মন্ডল স্পর্টস, মীর ক্রোকারিজ, মিনিষ্টার ফ্রিজ। এ ছাড়াও জয়ী ও রানারআপদের পুরস্কৃার প্রদান করা হয়।

ছাত্রদলের কাউন্সিল বন্ধের পেছনে ছাত্রলীগের চাঁদাবাজি – রিজভী

ঢাকা অফিস ॥ ছাত্রলীগের চাঁদাবাজির ঘটনার পর দেশজুড়ে যে নিন্দার ঝড় বয়ে যাচ্ছে তা আড়াল করতেই সরকার আদালতকে দিয়ে ছাত্র দলের কাউন্সিল বন্ধ করেছে বলে অভিযোগ করেছেন বিএনপির জ্যেষ্ঠ যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী। গতকাল রোববার রাজধানীতে আন্তর্জাতিক গণতন্ত্র দিবস উপলক্ষে মিছিল পরবর্তী সমাবেশে এ অভিযোগ করেন তিনি। রিজভী বলেন, গোটা দেশে ছাত্রলীগের চাঁদাবাজি নিয়ে ছি ছি পড়ে গেছে। এটাকে আড়াল করে জনগণের দৃষ্টিকে অন্যদিকে নিয়ে যাওয়ার জন্যই শেখ হাসিনা ‘আদালতকে কসাইয়ের ছুরি হিসেবে’ ব্যবহার করে ছাত্রদলের কাউন্সিল বন্ধ করেছেন। “ছাত্রলীগের সভাপতি-সাধারণ সম্পাদককে কালকে অব্যাহতি দিয়েছেন কে, অন্য দুই জনকে দায়িত্ব দিয়েছেন কে? শেখ হাসিনা। এটি করেছেন, গণভবনে বসে আওয়ামী লীগের সভায়। আর আদালত বিএনপির গঠনতন্ত্রে যা আছে সেগুলোকে আমলে না নিয়ে শেখ হাসিনার কথায় কাউন্সিলের ওপর স্থগিতাদেশ দিয়েছেন।” আওয়ামী লীগের সহযোগী ছাত্র সংগঠন ছাত্রলীগের সভাপতি রেজওয়ানুল হক চৌধুরী শোভন ও সাধারণ সম্পাদক গোলাম রাব্বানীর বিরুদ্ধে জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের উন্নয়ন প্রকল্প থেকে চাঁদাবাজির অভিযোগ নিয়ে কয়েক দিন ধরে আলোচনার মধ্যে মেয়াদ শেষ হওয়ার আগে শনিবার তাদের সরিয়ে দেওয়া। এ দিনই অনুষ্ঠিতব্য ছাত্রদলের কাউন্সিল দুদিন আগে সদ্য সাবেক কমিটির এক নেতার আবেদনে আদালতের আদেশে তা বন্ধ হয়ে যায়। ছাত্রলীগের শীর্ষ নেতৃত্বের কর্মকান্ডের সমালোচনা করে বিএনপি জ্যেষ্ঠ যুগ্ম মহাসচিব বলেন, “আপনারা দেখেছেন ছাত্রলীগের সভাপতি-সাধারণ সম্পাদক ৮৬ কোটি টাকা দাবি করেছেন জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের ভাইস চ্যান্সলরের কাছে। ভাইস চ্যান্সলর, সভাপতি আর সাধারণ সম্পাদকের বক্তব্যে যেটা ফুটে উঠেছে- সেখানে জ্ঞানের কথা নাই, বিজ্ঞানের কথা নাই, সাহিত্যের কথা নাই; আছে চাঁদাবাজির কথা। ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক বলেছেন ঈদের খরচের জন্য আমি চেয়েছি। “আমি ছাত্রদলের সভাপতি ছিলাম, অনেক দিন মধুর ক্যান্টিন থেকে বাসায় হেঁটে এসেছি- লজ্জায় কাউকে বলতে পারিনি। আজকে শেখ হাসিনা উপহার দিয়েছেন এমন ছাত্রলীগ সভাপতি-সাধারণ সম্পাদক, তারা ঈদের খরচের জন্য টাকা চান।” আন্তর্জাতিক গণতন্ত্র দিবস উপলক্ষে বিএনপির অঙ্গসংগঠনের নেতা-কর্মীদের নিয়ে রিজভী দুপুরে নয়া পল্টনে দলের কেন্দ্রীয় কার্যালয় থেকে কাকরাইলের নাইটিংগেল রেস্তোরাঁ পর্যন্ত মিছিল করেন। এদিকে দুপুরে মানবন্ধনে চাঁদাবাজির অভিযোগে ছাত্রলীগ সভাপতি-সাধারণ সম্পাদকের বিচার দাবি করেছেন বিএনপির ভাইস চেয়ারম্যান অধ্যাপক এজেডএম জাহিদ হোসেন ও যুগ্ম মহাসচিব হাবিব উন নবী খান সোহেল। তারা বলেন, এদের বয়স বেশি না। এদেরকে যারা চাঁদাবাজি শিখিয়েছে তাদেরকেও বিচারের আওতায় আনতে হবে। সকালে জাতীয় প্রেস ক্লাবের সামনে খালেদা জিয়ার মুক্তির দাবিতে মৎস্যজীবী দলের উদ্যোগে সকাল ১১টা থেকে ১২টা পর্যন্ত এই মানববন্ধন হয়। বিএনপির ১২টি অঙ্গসংগঠন ও সহযোগী সংগঠন মানববন্ধনের যে টানা কর্মসূচি ঘোষণা করেছে এটি তার প্রথমটি। সংগঠনের আহ্বায়ক রফিকুল ইসলাম মাহতাবের সভাপতিত্বে ও সদস্য সচিব আবদুর রহিমের পরিচালনায় মানববন্ধনে বিএনপির কেন্দ্রীয় নেতা অধ্যক্ষ সেলিম ভুঁইয়া, আবদুস সালাম আজাদ, মৎস্যজীবী দলের নাদিম চৌধুরী ও সেলিম মিয়াসহ বক্তব্য দেন।

চিকিৎসা নিয়ে বাড়ি ফিরেছেন ৯৭ শতাংশ ডেঙ্গু রোগী

ঢাকা অফিস ॥ চিকিৎসা নিয়ে বাড়ি ফেরা ডেঙ্গু রোগীর সংখ্যা বাড়ছে। এ পর্যন্ত চিকিৎসা নিয়ে বাড়ি ফিরেছেন ৯৭ শতাংশ ডেঙ্গু রোগী। চলতি বছরের শুরু থেকে গতকাল রোববার পর্যন্ত ডেঙ্গুতে আক্রান্ত হয়েছেন ৮১ হাজার ১৮৬ জন। আর চিকিৎসা নিয়ে বাড়ি ফিরেছেন ৭৮ হাজার ৪৩৭ জন। এ পর্যন্ত ৯৭ শতাংশ মানুষ চিকিৎসা নিয়ে বাড়ি ফিরেছেন। সারাদেশে বর্তমানে মোট ভর্তি রোগীর সংখ্যা ২ হাজার ৫৪৬ জন। এর মধ্যে ঢাকায় ১ হাজার ৩৩ জন এবং ঢাকার বাইরে ১ হাজার ৫১৩ জন। গত ২৪ ঘন্টায় সারাদেশে ছাড়প্রাপ্ত মোট রোগীর সংখ্যা ১ হাজার ৬৯ জন। স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের ইমার্জেন্সি অপারেশনস সেন্টার ও কন্ট্রোল রুম থেকে প্রাপ্ত প্রতিবেদনে এ তথ্য পাওয়া গেছে। গত ২৪ ঘণ্টায় (১৪ সেপ্টম্বর সকাল ৮ টা থেকে ১৫ সেপ্টম্বর সকাল ৮টা) পর্যন্ত নতুন করে ডেঙ্গুতে আক্রান্ত হয়ে হাপসাতালে ভর্তি হয়েছেন ৬১৯ জন। এর মধ্যে ঢাকায় ১৬৩ জন এবং ঢাকার বাইরে ৪৫৬ জন। এ যাবত ডেঙ্গু রোগে ৬০ জনের মৃত্যু হয়েছে। স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের প্রতিবেদন থেকে জানা গেছে, গত ২৪ ঘন্টায় ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ৩৬, মিটফোর্ড হাসপাতালে ২০, ঢাকা শিশু হাসপাতালে ৩, শহীদ সোহরাওয়ার্দী হাসপাতালে ১০, বিএসএমএমইউতে ৮, রাজারবাগ পুলিশ হাসপাতালে ৩ জন, মুগদা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ১৯, সম্মলিত সামরিক হাসপাতালে ৪ জন এবং কুর্মিটোলা জেনারেল হাসপাতালে ১২ জন ডেঙ্গু রোগী ভর্তি হয়েছেন। ঢাকা বিভাগের বিভিন্ন হাসপাতালে (ঢাকা শহর ব্যতীত) ৮৭ জন, চট্টগ্রাম বিভাগে ৫৪ জন, খুলনা বিভাগে ১৮৫ জন, রংপুর বিভাগে ১০ জন, রাজশাহী বিভাগে ৪০ জন, বরিশাল বিভাগে ৬৪ জন, সিলেট বিভাগে ৪ জন ও ময়মনসিংহ বিভাগে ১১ জন ডেঙ্গু জ্বরে আক্রান্ত রোগী ভর্তি হন।

ইসলামিয়া কলেজে প্রাথমিক চিকিৎসা শিক্ষা বিষয়ক প্রশিক্ষণের উদ্বোধন

নিজ সংবাদ ॥ রেড ক্রস ও রেড ক্রিসেন্ট সোসাইটির কুষ্টিয়ার উদ্যোগে ইসলামিয়া কলেজে প্রাথমিক চিকিৎসা শিক্ষা বিষয়ক প্রশিক্ষণ গতকাল রবিবার থেকে শুরু হয়েছে। সকালে কলেজ শিক্ষক মিলনায়তনে এই কর্মসুচীর আনুষ্ঠানিক উদ্বোধন করেন ইসলামিয়া কলেজ গভর্নিং বডির সভাপতি, ইসলামি বিশ্ববিদ্যালয়ের আইন সেলের ডেপুটি রেজিষ্টার ও রবীন্দ্র মৈত্রি বিশ্বদ্যিালয়ের ট্রাষ্টি বোর্ডের মেম্বর সেক্রেটারী ও সিন্ডিকেট সদস্য শামসুর রহমান বাবু। কলেজের প্রিন্সিপাল নওয়াব আলীর সভাপতিত্বে এসময় উপস্থিত ছিলেন কলেজের শিক্ষক বদরুদ্দিন শেখ নিলূ, রেড ক্রিসেন্ট কুষ্টিয়ার ইউনিট লেবেল অফিসার লিটন কুমার। দুর্যোগেরর ঝুঁকি হ্রাসকরণের সক্ষমতা বৃদ্ধির লক্ষে ইসলামীয়া কলেজের রেড ক্রিসেন্ট ইউনিটের ৫৩জন শিক্ষার্থী এই প্রশিক্ষন গ্রহন করছেন। ২ দিনব্যাপী এই প্রশিক্ষনে দুর্যোগকালীন পরিবেশ মোকাবিলা সেই সাথে স্বাস্থ্য বিষয়ক  বিভিন্ন শিক্ষা প্রদানই মুল লক্ষ্য। উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে শামসুর রহমান বাবু বলেন, বাংলাদেশ এখন প্রাকৃতিকগত অনেক ঝুঁকির মধ্যে রয়েছে। এই ঝুঁকি মোকাবিলায় রেড ক্রিসেন্ট সোসাইটির কর্মীরা নিরলসভাবে কাজ করে থাকে। তেমনিভাবে ইসলামীয়া কলেজের রেড ক্রিসেন্টের সদস্যরা এই ধরনের প্রশিক্ষণ গ্রহনের মাধ্যমে নিজেদের জ্ঞানার্র্জন ও সেবামুলক কাজের সাথে সম্পৃক্ত থেকে সমাজের মানুষের জন্য কাজ করার সুযোগ পাবে। তিনি আরো বলেন, আত্মমানবতায় আমাদের সকলকেই এগিয়ে আসতে হবে। ‘মানুষ মানুষের জন্য’ সেবার এই ব্রত নিয়ে আমরা সকলে কাজ করলে দেশ উন্নয়ন হবে সেই সাথে আমরা সকলে উপকৃত হবো। পরে তিনি দুই দিনব্যাপী এই প্রশিক্ষনের উদ্বোধন করেন।

চুয়াডাঙ্গায় হুন্ডির সাড়ে ৩০ লাখ টাকাসহ আটক ১

চুয়াডাঙ্গা প্রতিনিধি ॥ চুয়াডাঙ্গার দামুড়হুদা উপজেলার মুন্সিপুর সীমান্ত এলাকা থেকে হুন্ডির ৩০ লাখ ৫০ হাজার টাকাসহ একজনকে আটক করেছে বিজিবি। আটককৃত আব্দুর রাজ্জাক বিশ্বাস (৩৪) কুতুবপুর গ্রামের মৃত জামাত আলীর ছেলে। রোববার সকাল ৮টার দিকে দামুড়হুদা সীমান্তের কুতুবপুর গ্রামের পূর্বপাড়া কবরস্থান এলাকা থেকে তাকে আটক করা হয় বলে বিজিবি জানায়। রোববার বিকাল ৩টার দিকে এক প্রেস ব্রিফিংয়ের মাধ্যমে চুয়াডাঙ্গার ৬ বিজিবি পরিচালক সাজ্জাদ সরোয়ার জানায়, গোপন সংবাদের ভিত্তিতে মুন্সিপুর বিওপির টহল কমান্ডার সুবেদার মতিউর রহমান সকালে কুতুবপুর এলাকায় অভিযান চালিয়ে আব্দুর রাজ্জাককে (৩৪) একটি ভারতীয় টিভিএস  ১০০ সিসি মোটরসাইকেলসহ আটক করে। আটকের পর তার কাছ থেকে ‘নগদ ৩০ লাখ  ৫০ হাজার টাকা’ জব্দ করা হয়।

সেতু’র আইসিএসডিএপি পুরস্কার লাভ

সেতু দেশের দরিদ্র ও পিছিয়ে পড়া জনগোষ্ঠির আর্থ-সামাজিক উন্নয়নে দীর্ঘ ৩৫ বছর যাবৎ কাজ করে চলেছে। দারিদ্র্য দূরীকরণ ও অসমতা হ্রাসে গুরুত্বপূর্ণ অবদানের জন্য এশিয়-প্রশান্ত মহাসাগরীয় আন্তজার্তিক জোট ‘আইসিএসডিএপি’ সেতু সংস্থাকে সোস্যাল ডেভেলপমেন্ট অ্যাওয়ার্ড ২০১৯ প্রদান করেছে। সেপ্টেম্বর ১৪-১৫, ২০১৯ইং তারিখ ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয়, কুষ্টিয়াতে আইসিএসডিএপি’র ৭ম দ্বিবার্ষিক আন্তজার্তিক সম্মেলন অনুষ্ঠিত হয়েছে। সম্মেলনে এশিয়া, ইউরোপ ও অস্ট্রেলিয়ার ৮ দেশের ৪৮ বিদেশী বিশেষজ্ঞসহ ২৬৭ জন অংশগ্রহণ করেছেন। সম্মেলনের প্রতিপাদ্য বিষয় ‘সামাজিক অস্থিরতা, শান্তি ও উন্নয়ন’। আইসিএসডিএপি ১৯৭০ দশকে একদল সমাজ কর্মী এবং শিক্ষকদের সমন্বয়ে যাত্রা শুরু করে। টেকসই উন্নয়ন লক্ষ্যমাত্রা অর্জনে সামাজিক স্থিতিশীলতা বজায় রাখা, শান্তির পথনির্দেশ করা এবং শান্তি ও উন্নয়নের জন্য ভবিষ্যত সম্ভাবনার দ্বার উন্মোচন করাই আন্তর্জাতিক এই সংস্থার লক্ষ্য। সংবাদ বিজ্ঞপ্তি

সরকার খাদ্য উৎপাদন বৃদ্ধির জন্য নিরলসভাবে কাজ করছে ঃ  কৃষিমন্ত্রী

ঢাকা অফিস ॥ কৃষিমন্ত্রী ড. মো. আব্দুর রাজ্জাক বলেছেন, সরকার নিরাপদ ও পুষ্টিমান সমৃদ্ধ খাদ্য উৎপাদন বৃদ্ধির জন্য নিরলসভাবে কাজ করে যাচ্ছে। অধিক সার ব্যবহারের ফলে পরিবেশ ও মানুষের স্বাস্থ্যের জন্য বিরূপ প্রতিক্রিয়া সৃষ্টি হয়- সে বিষয়ে কৃষকদেরকে আরও সচেতন করে তুলতে হবে। তিনি বলেন, কৃষি কাজে জৈব ও রাসায়নিক সার প্রয়োগের মাধ্যমে নাইট্রোজেন সরবরাহ করা হয়। আমাদের কৃষি কাজের প্রয়োজনে হেক্টর প্রতি আবাদি জমিতে রাসায়নিক সারের ব্যবহার অনেক বেশি। গতকাল রোববার রাজধানীর লেক ক্যাসেল হোটেলে ‘ইন্টারন্যাশনাল নাইট্রোজেন ম্যানেজমেন্ট সিস্টেম সাউথ এশিয়া রিজিওনাল ডেমোনেস্ট্রশন’ ওয়ার্কশপে তিনি এসব কথা বলেন। কৃষিমন্ত্রী বলেন, নাইট্রোজেন ব্যবহার ফসলের উৎপাদন ৩০-৩৪ শতাংশ পর্যন্ত বাড়ায়। আবার অধিক নাইট্রোজেন সমৃদ্ধ সার ব্যবহারের ফলে জমির ফসলের উৎপাদন বৃদ্ধি পেলেও জমির ঊর্বরতা কমে যায়। তিনি বলেন, অনেক কৃষক সারের সঠিক ব্যবহার না জেনে জমিতে বেশি বেশি সার ব্যবহার করে। যার ফলে সারের নাইট্রোজেন বাতাসে মিশে পরিবেশ দূষণ করে, আবার পানিতে মিশে মানুষের জন্য ক্ষতির কারণ হয়। তাই এর ব্যবহার পরিমিত করতে হবে এবং পর্যায়ক্রমে কমিয়ে আনতে হবে। কৃষিমন্ত্রী আরও বলেন, অতীতে ফসল উৎপাদনের জন্য প্রয়োজনীয় নাইট্রোজেন মূলত জেব সার প্রয়োগের মাধ্যমেই মেটানো সম্ভব হতো। কিন্তু আজ তা চাহিদার তুলনায় অপ্রতুল, ফলে রসায়নিক পদ্ধতিতে ডাই-নাইট্রোজেন অণু ভেঙে হাইড্রোজেন ও অক্সিজেনের সঙ্গে বিক্রিয়ার মাধ্যমে তৈরি করা হচ্ছে রসায়নিক সার। গাছপালা কার্যত সারের মাত্র অর্ধেক নাইট্রোজেন ব্যবহার করে থাকে আর বাকি অর্ধেক নানা ধরনের বিক্রিয়াক্ষম নাইট্রোজেন অণুতে রূপান্তরিত হয়ে মাটি, পানি ও বাতাসে মিশে যায়। এভাবে বিক্রিয়াক্ষম নাইট্রোজেন দিন দিন বাড়তে থাকে আর শুরু হয় পরিবেশ দূষণের নতুন মাত্রার নাইট্রোজেন দূষণ। অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন আইএনএমএস’র পরিচালক প্রফেসর ড.মার্ক এ সুত্তন, ভারতের এসএএনসি’র পরিচালক প্রফেসর ড. নান্দুলাল রাঘুরাম ও প্রফেসর ড. তপন কে অধ্যায়। বিশেষ অতিথি ছিলেন বিরি’র মহাপরিচালক ড. মো. শাজাহান কবীর ও বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য ড. মো. গিয়াস উদ্দিন মিয়া। এতে স্বাগত বক্তব্য দেন ড. মো. মিজানুর রহমান।

৪০ লাখ টাকা অর্থ দিয়ে পদ নেয়ার অভিযোগ

ইবি ছাত্রলীগের কমিটিকে অবাঞ্ছিত ঘোষণা করে মিছিল ও সমাবেশ

নিজ সংবাদ ॥ শোভন-রাব্বানিকে ৪০ লাখ টাকা দিয়ে কমিটিতে পদ নেয়ার অভিযোগে ইবি ছাত্রলীগের সভাপতি-সম্পাদককে অবাঞ্চিত ঘোষনা করে বিক্ষোভ মিছিল ও সমাবেশ করেছে বিক্ষুব্ধরা। গতকাল রোববার দুপুরে ক্যাম্পাসে মিছিল বের করে বঞ্চিত কমিটির দুই শতাধিক নেতাকর্মি। ফয়সাল সিদ্দিকী আরাফাত, মিজানুর রহমান, তৌকির মাহফুজ মাসুদ, শিশির ইসলাম বাবুর নেতৃত্বে   মিছিল ও সমাবেশ হয়। এ সময় নতুন কেন্দ্রীয় কমিটির দ্ইু নেতাকে শুভেচ্ছা জানানোর পাশাপাশি ইবির সভাপতি রবিউল ইসলাম পলাশ ও রাকিবুল ইসলাম রাকিবের বিরুদ্ধে ৪০ লাখ টাকা অর্থ দিয়ে কমিটি আনার অভিযোগ এনে তাদের অবৈধ কমিটি বাতিল করার দাবি জানানো হয়। মিছিলটি পুরো ক্যাম্পাস ঘুরে দলীয় টেন্ডে গিয়ে শেষ হয়। মিছিল থেকে ৪০ লাখের কমিটি মানি না মানবো না, অবৈধ কমিটি মানি না মানবো না। ছাত্রলীগের দুই নেতাকে ক্যাম্পাকে অবাঞ্ছিত ঘোষনা করা হয় সামবেশ থেকে। সম্প্রতি ইবি ছাত্রলীগের সম্পাদক রাবিকের ফোনালাপ ফাঁস হলে তোলপাড় সৃষ্টি হয়। সেখানে অর্থ নিয়ে পদ নেয়ার বিষয়টি উঠে আসে। যদিও রাকিব বিষয়টি অস্বীকার করে আসছে।

কাজীপুর সীমান্তে বিজিবি-বিএসএফ ব্যাটালিয়ন কমান্ডার পর্যায়ের পতাকা বৈঠক

দৌলতপুর প্রতিনিধি ॥ কুষ্টিয়ার দৌলতপুর সীমান্ত সংলগ্ন মেহেরপুরের কাজীপুর সীমান্তে বিজিবি-বিএসএফ ব্যাটালিয়ন কমান্ডার পর্যায়ের পতাকা বৈঠক অনুষ্ঠিত হয়েছে। গতকাল রবিবার সকাল সাড়ে ১০টায় গাংনী উপজেলার কাজীপুর সীমান্তের ১৪৭ সীমান্ত পিলার সংলগ্ন এলাকায় এ পতাকা বৈঠক অনুষ্ঠিত হয়। দুপুর ১.৩০টা পর্যন্ত চলা এ পতাকা বৈঠকে ভারতীয় সীমান্তরক্ষী বাহিনী বিএসএফ’র পক্ষে নেতৃত্ব দেন ভারতের পশ্চিমবঙ্গের নদীয়া জেলার মরুটিয়া থানার ৩৯বিএসএফ ব্যাটালিয়ন কমান্ডেন্ট ড. সুব্রত কুমার সাহা এবং বর্ডারগার্ড বাংলাদেশ বিজিবি’র পক্ষে নেতৃত্ব দেন ৪৭ বিজিবি ব্যাটালিয়ন অধিনায়ক লে. কর্ণেল রফিকুল আলম পিএসসি। এসময় একজন ষ্টাফ অফিসারসহ গাংনীর সীমান্তের বিভিন্ন কোম্পানী কমান্ডারগণ উপস্থিত ছিলেন। পতাকা বৈঠকে সীমান্ত শুন্য লাইন থেকে ১৫০ মিঃ পর্যন্ত উঁচু ফসলী আবাদ না করা, সীমান্ত হত্যা, সীমান্তে যৌথ টহল, নারী ও শিশু পাচার প্রতিরোধ, অবৈধ অনুপ্রবেশকারী হস্তান্তর এবং সীমান্ত চোরাচালান রোধসহ সীমান্ত সংক্রান্ত বিভিন্ন বিষয়ে আলোচনা করা হয়। পতাকা বৈঠক শেষে সীমান্ত পিলার ১৪৭ হতে ১৪৬/৩-এস পর্যন্ত উভয় ব্যাটালিয়ন কমান্ডার সমন্বিত টহলের মাধ্যমে সীমান্ত পিলার এবং শুন্য লাইন পরিদর্শন করেন।

কুষ্টিয়া থানাপাড়া শ্রীশ্রীঠাকুর অনুকুলচন্দ্রের শুভ ১৩২তম আবির্ভাব বর্ষ স্মরণ মহোৎসব ধর্মসভা

নিজ সংবাদ ॥ “যুগ সমস্যা-সমাধানে শ্রী শ্রী ঠাকুরের দিব্য জীবন ও বাণী”এই আলোচ্য বিষয়কে সামনে রেখে গতকাল রবিবার বিকেলে কুষ্টিয়া শহরের থানাপাড়া শ্রীশ্রীঠাকুর অনুকুলচন্দ্র সৎসঙ্গ মন্দির লীলাভূমিতে বিশ্বগুরু শতবর্ষ স্মরণ মহোৎসব এর প্রথম স্মৃতি বাৎসরিক ও শ্রীশ্রীঠাকুর অনুকুলচন্দ্রের শুভ ১৩২তম আবির্ভাব বর্ষ স্মরণ মহোৎসব ধর্মসভা অনুষ্ঠিত হয়েছে। অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি ছিলেন বাংলাদেশ আওয়ামীলীগের যুগ্ম-সাধারন সম্পাদক ও কুষ্টিয়া-৩ সদর আসনের সংসদ সদস্য মাহবুবউল আলম হানিফ। বিশেষ অতিথি ছিলেন কুষ্টিয়া জেলা আওয়ামীলীগের সভাপতি আলহাজ্ব সদর উদ্দিন খান, জেলা পরিষদ চেয়ারম্যান ও জেলা আ’লীগের সিনিয়র সহ-সভাপতি হাজী রবিউল ইসলাম, জেলা আওয়ামীলীগের সাধারন সম্পাদক বীরমুক্তিযোদ্ধা আজগর আলী ও শিক্ষা বিষয়ক সম্পাদক আমজাদ হোসেন রাজু।

অনুষ্ঠানে অন্যান্যের মধ্যে সদর উপজেলা আওয়ামীলীগের সভাপতি এ্যাড. আক্তারুজ্জামান মাসুম, সাধারন সম্পাদক আক্তারুজ্জামান বিশ্বাস, শহর আওয়ামীলীগের সভাপতি তাইজাল আলী খান, বিশিষ্ট ব্যবসায়ী অজয় সুরেখাসহ গন্যমান্য ব্যক্তিবর্গ উপস্থিত ছিলেন। প্রধান বক্তা ছিলেন ড. রবিন্দ্রনাথ সরকার (সভাপতি শ্রীশ্রীঠাকুর অনুকুল, পাবনা), বিশেষ বক্তা ছিলেন শ্রী তাপস মাইতি (সম্পাদক, যুগপ্রহরী, কোলকাতা)। সভাপতিত্ব করেন উক্ত মন্দির কমিটির সভাপতি শ্রী ভক্তপদ সরকার। প্রধান অতিথি মাহবুবউল আলম হানিফ তার বক্তব্য শেষে মন্দির কর্তৃপক্ষকে ১লক্ষ টাকা অনুদানের ঘোষনা দেন।

ডেঙ্গু প্রতিরোধে কুষ্টিয়া পৌরসভার কার্যক্রম অব্যাহত

পূনরায় কিট “বেনটাসিড ২৫০ ইসি” পৌর এলাকায় ছেটানো হচ্ছে

গত ১২ সেপ্টেম্বর হতে ১৫ সেপ্টেম্বর পর্যন্ত পৌর এলাকার ১, ২ ও ৭ নং ওয়ার্ডের প্রতিটি স্থানে পূনরায় এই কার্যক্রম পরিচালিত হয়েছে। দেশব্যাপী এডিস মশা ও ডেঙ্গুর প্রকোপ দেখা দেওয়ার কারনে কুষ্টিয়া পৌর এলাকার এডিস মশার লাভা নিধনে নতুন উদ্দ্যোমে কর্মসূচি গ্রহন করেছে কুষ্টিয়া পৌরসভার মেয়র আনোয়ার আলী। এডিস মশার লাভা নিধনে সিঙ্গাপুর থেকে সংগৃহীত এই কিট “বেনটাসিড ২৫০ ইসি” বড় ও ছোট ফগার মেশিন দিয়ে পৌর এলাকার বিভিন্ন শিক্ষা-প্রতিষ্ঠান, ডোবা-নালা, ড্রেন, কালভার্টসহ পৌর বাসিন্দাদের বসতবাড়ী ও তাদের আঙ্গিনায় ছেটানো হচ্ছে। সেই সাথে চলমান কার্যক্রমের সাথে আরোও নতুন ১৩ টি ফগার ও স্প্রে মেশিন যুক্ত হয়েছে। উলে¬খ্য, গত জুলাই ২৫ তারিখ থেকে কুষ্টিয়া পৌরসভার আয়োজনে আনুষ্ঠানিকভাবে এই কার্যক্রম শুরু হয়। এরপর হতে পৌরসভার মেয়রের নির্দেশনা পর্যায়ক্রমে পৌর এলাকার পূনরায় ২১ টি ওয়ার্ডে স্ব স্ব কাউন্সিলরের নেতৃত্বে কীটনাশকসহ ফগার মেশিন দিয়ে স্প্রে করা হয়েছিল। এছাড়াও পৌরসভার পরিচ্ছন্ন কর্মীরা পৌর এলাকায় পরিষ্কার-পরিচ্ছন্নতা অব্যাহত রেখেছে । সংবাদ বিজ্ঞপ্তি

কুষ্টিয়া জেলা উন্নয়ন সমন্বয় কমিটির সভায় ডিসি আসলাম হোসেন

নির্ধারিত সময়েই উন্নয়ন প্রকল্পের কাজ শেষ করতে হবে

আরিফ মেহমুদ ॥ কুষ্টিয়ার জেলা প্রশাসক মোঃ আসলাম হোসেন বলেছেন, আমাদের প্রত্যেকের পরিশ্রম ও আন্তরিকতার কারনে সফলতার সাথে এগিয়ে যাচ্ছে জেলার প্রতিটি উন্নয়নমুলক প্রকল্পের কাজ। এসব কাজ বাস্তবায়নে আপনার সমস্যা যদি আপনি সৃষ্টি করেন তা কোনভাবেই মেনে নেয়া হবে না। প্রত্যেকটি উন্নয়নমুলক কাজে সঠিকভাবে নিজের উপর অর্পিত দায়িত্ব পালন করতে হবে। মনে রাখবেন নির্ধারিত সময়ের মধ্যেই সকল প্রকল্পের উন্নয়নমুলক কাজ শেষ করতে হবে। মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর ব্যক্তিগত উদ্দ্যোগের অগ্রাধিকার ভিত্তিক যে সব কাজ এখনো চলমান আছে তা অতি দ্রুত শেষ করতে হবে। কাজের প্রতি দায়িত্বশীল হলে সফলতা আসবেই। সঠিক তদারকী করে দায়িত্ব পালন করতে না পারলে সরে দাঁড়াতে হবে। কাজের প্রতি দায়িত্বহীনতার পরিচয় দিবেন না। গতকাল রবিবার সকালে জেলা প্রশাসকের সম্মেলন কক্ষে জেলা উন্নয়ন সমন্বয় কমিটির সভায় সভাপতির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন। জেলা প্রশাসক আরো বলেন, তিনি আরো বলেন, প্রত্যেকটি উন্নয়নমুলক কাজে সঠিকভাবে নিজের উপর অর্পিত দায়িত্ব পালন করতে হবে। উন্নয়নমুলক প্রতিটি কাজের প্রতি দায়িত্বশীল হলে সফলতা আসবেই। সঠিক তদারকী করে দায়িত্ব পালন করতে না পারলে সরে দাঁড়াতে হবে। কাজের নামে অকাজ করে দায়িত্বহীনতার পরিচয় দিবেন না। তিনি সড়ক ও জনপথ কুষ্টিয়া বিভাগের নবাগত নির্বাহী প্রকৌশলীর উদ্দেশ্যে বলেন, কুমারখালী-রাজবাড়ী সড়ক প্রসস্থকরণ কাজের অগ্রগতিতে জনগণ উপকৃত হলেও কাজ শেষ হতে না হতেই রাস্তার ধারে অনেক ধস দেখা দেয়ায় জনঅসন্তুষ্টি বাড়ছে।  জনভোগান্তি বাড়ার আগেই দ্রুত এসব ধস ঠেকাতে কাজ শেষ করতে হবে। দ্রুত কাজ সম্পন্ন করতে প্রয়োজনীয় উদ্যোগ গ্রহন করতে হবে। কোন কাজেই গাফিলতি মেনে নেয়া হবে না। জেলাব্যাপী ব্যাপকহারে চলছে উন্নয়ন কর্মযজ্ঞ। এক সময় যোগাযোগ ব্যবস্থার ভংগুর পরিস্থিতি বার বার জনগণের মুখোমুখি করলেও আজকে সেই অবস্থা আর নেই। দ্রুত রাস্তা মেরামত, নির্মাণ, সড়ক প্রসস্থকরনের কাজ চলছে। খুব শীঘ্রই যোগাযোগ ক্ষেত্রে জনগণের ভোগান্তি কমে আসবে।  তিনি বলেন, উন্নত যোগাযোগ ব্যবস্থা থাকেল এলাকার ব্যাপক উন্নয়ন সম্ভব। যে এলাকার যত বেশি উন্নত যোগাযোগ ব্যবস্থা রয়েছে সেই এলাকা তত বেশি উন্নত। আমরা যারা উন্নয়ন কর্মকান্ডে নিযুক্ত সংশ্লিষ্ট তারা যদি  দেশের জন্য এ জেলার জন্য স্ব-স্ব ক্ষেত্র থেকে ছোট্ট ছোট্ট পরবির্তন আনতে পারি তাহলেই আমাদের উন্নয়নের অঙ্গীকার পূরন হবে। তবেই তো এগিয়ে যাবে দেশ। আর এক্ষেত্রে সবার আগে উন্নত যোগাযোগ ব্যবস্থা নিশ্চিত করতে হবে। উন্নয়ন মুলক কাজের পাশাপাশি প্রত্যেক কর্মকর্তাকে বর্তমান পরিস্থিতি ডেঙ্গু নিয়ে ভাবতে হবে। কারন ডেঙ্গু এখন কুষ্টিয়ায় অপ্রতিরোধ্য হয়ে দাঁড়িয়েছে। ডেঙ্গু জ¦র ব্যাপকভাবে ছড়িয়ে পড়ছে কুষ্টিয়ায়। এপর্যন্ত ১০ জনের খবর পাওয়া গেছে। এডিশ মশার বংশ ধ্বংশ করতে এবং ডেঙ্গু প্রতিরোধে পরিবেশ পরিস্কার পরিচ্ছন্ন রাখতে নিজ নিজ এলাকায় জনসচেতনতা বৃদ্ধি করতে হবে।  তিনি বলেন, নিজেকে একজন দেশ প্রেমিক হিসেবে মানসিকভাবে তৈরী হতে হবে।  দেশ এগিয়ে যাচ্ছে, আগামীতেও উন্নয়নের ধারাবাহিকতা রক্ষা করে এগিয়ে যাবে। এক্ষেত্রে কুষ্টিয়া পিছিয়ে থাকতে পারে না। যে কাজ করবেন সেটি যেন দেশের উন্নয়নে ও জাতির কল্যাণে নিবেদিত হয়। কুষ্টিয়া জেলার উন্নয়নে আমাদের সবার সম্মিলিত প্রচেষ্ঠায় সহযোগীতার হাত বাড়িয়ে দিয়ে ঐক্যবদ্ধ হয়ে কাজ করতে হবে। তবেই দেশের মধ্যে কুষ্টিয়া হয়ে উঠবে পর্যটন শিল্পে সমৃদ্ধ একটি জেলা। এজন্য সরকারী স্ব স্ব প্রতিষ্ঠানগুলো যেন কোনভাবেই অনিয়ম না করতে পারে এবং জনগনকে সঠিকভাবে যথাসময়ে সেবা প্রদান করতে পারে সে জন্য সরকারী সব কর্মকর্তাদের দিক নির্দেশনা প্রদান করেন তিনি।

বিগত মাসের বিস্তারিত তুলে ধরে তাকে সহযোগিতা করেন কুষ্টিয়া অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (সার্বিক) আজাদ জাহান।  সভায় অন্যান্যের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন স্থানীয় সরকার উপ-পরিচালক মৃনাল কান্তি দে, কুষ্টিয়া সরকারী মহিলা কলেজের অধ্যক্ষ সফিকুর রহমান খান, কুষ্টিয়া জেনারেল হাসপাতালের উপ-পরিচালক ডাঃ নুরুন্নাহার বেগম, দৌলতপুর উপজেলা চেয়ারম্যান এজাজ আহমেদ মামুন, ভেড়ামারা উপজেলা চেয়ারম্যান আক্তারুজ্জামান মিঠু, কুষ্টিয়া উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা জুবায়ের হোসেন চৌধুরী, দৌলতপুর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা শারমিন আখতার, কুমারখালি উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা রাজিবুল ইসলাম খান, ভেড়ামারা উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা সোহেল মারুফ, সড়ক ও জনপথ বিভাগের নির্বাহী প্রকৌশলী তানিমুল হক, এলজিইডি’র নির্বাহী প্রকৌশলী এ এস এম শাহেদুর রহিম, গণপূর্ত বিভাগের নির্বাহী প্রকৌশলী আরিফুল ইসলাম, শিক্ষা প্রকৌশল অধিদপ্তরের নির্বাহী প্রকৌশলী এটিএম মারুফ আল ফারুকী, পানি উন্নয়ন বোর্ডের নির্বাহী প্রকৌশলী পিযুষ কৃষ্ণ কুন্ডু,  জেল সুপার জাকের হোসেন, জেলা প্রাণী সম্পদ কর্মকর্তা ডাঃ সিদ্দিকুর রহমান, কুষ্টিয়া জেলা মুক্তিযোদ্ধা কমান্ডের সাবেক ডেপুটি কমান্ডার রফিকুল আলম টুকু, বড় বাজার ব্যবসায়ী সমিতির সভাপতি মোকাররম হোসেন মোয়াজ্জেম,  জেলা মাধ্যমিক শিক্ষা কর্মকর্তা জায়েদুর রহমান, ওজোপাডিকোর নির্বাহী প্রকৌশলী প্রণব বাবু, পাসপোর্টের সহকারী পরিচালক বজলুর রশিদ, বিএফএ’র সাধারণ সম্পাদক আব্দুল লতিফ, পল্লী বিদ্যুতের জিএম হারুন-অর-রশিদ,  বিআরটিএ’র সহকারী পরিচালক এটিএম জালাল উদ্দিন, জেলা বিআরডিবি কর্মকর্তা আব্দুস সাত্তার, ড্রাগ সুপার হারুন-অর-রশিদ, কৃষি সম্প্রসারণের উপ-পরিচালক বিভুতি ভুষণ সরকার, সমাজ সেবা অধিদপ্তরের উপ-পরিচালক  রোখসনা পারভীন, জেলা মহিলা বিষয়ক কর্মকর্তা হাসিনা বেগম, বাজার মনিটরিং অফিসার রবিউল ইসলাম, জেলা শিশু কর্মকর্তা মখলেছুর রহমান প্রমুখ।

কুষ্টিয়া মডেল থানা পুলিশের অভিযানে ফেন্সিডিলসহ মাদক কারবারী আটক

নিজ সংবাদ ॥ কুষ্টিয়া মডেল থানা পুলিশের অভিযানে ২৪ বোতল ফেন্সিডিলসহ মুকুল মন্ডল (৪০) নামে এক মাদক ব্যবসায়ী আটক হয়েছে। গতকাল রবিবার বিকেলে কুষ্টিয়া সদর উপজেলার জোতপাড়া গ্রামে অভিযান চালিয়ে তাকে আটক করেন কুষ্টিয়া মডেল থানা পুলিশের এসআই আতিক। আটক মুকুল মন্ডল জোতপাড়া গ্রামের মৃত ইয়াসিন মন্ডলের ছেলে। এই ঘটনায় কুষ্টিয়া মডেল থানায় একটি মামলা দায়ের হয়েছে। এসআই আতিক জানান, গোপন সংবাদের ভিত্তিতে জানতে পারি সদর উপজেলার জোতপাড়া গ্রামের মৃত ইয়াসিন মন্ডলের ছেলে মুকুল মন্ডল ফেন্সিডিল বিক্রি করছে। এমন সংবাদের ভিত্তিতে অভিযান চালিয়ে ২৪ বোতল ফেন্সিডিল উদ্ধার করা হয়। এই ঘটনায় মডেল থানায় একটি মামলা দায়ের হয়েছে। অভিযানে এএসআই জাকির এবং কনস্টেবল সেলিম রেজা অভিযান পরিচালনা করেন।

‘হাতে দুই প্যাকেট খাবার ধরিয়ে দিয়ে বাংলাদেশে ফেরত পাঠানো হবে’

ঢাকা অফিস ॥ অস্তিত্ব সংকটে ভুগছে ভারতীয় বাঙালিরা। গত ৩১ আগস্ট আসামে জাতীয় নাগরিক পঞ্জির (এনআরসি) চূড়ান্ত তালিকা ঘোষণা করায় রাজ্যটির প্রায় ১৯ লাখ অধিবাসী তাদের নাগরিত্ব হারিয়ে বসেছেন। একইভাবে পশ্চিমবঙ্গেও এনআরসি করার ঘোষণা দিয়েছে ভারতের ক্ষমতাসীন দল বিজেপি। যার শুরু থেকেই বিরোধিতা করে আসছেন রাজ্যটির মুখ্যমন্ত্রী মমতা ব্যানার্জি। আসামের মতো পশ্চিমবঙ্গে এনআরসি করার অনুমতি দেবেন না বলে হুশিয়ারি দিয়েছেন মমতা। তবে মমতার এসব হুশিয়ারিকে তোয়াক্কা না করে বিজেপির বিধায়ক সুরেন্দ্র সিং বলেছেন, ‘পশ্চিমবঙ্গে এনআরসি চালু করা হবে। আর যেসব মানুষ এনআরসি থেকে বাদ পড়বেন তাদের হাতে দুই প্যাকেট খাবার ধরিয়ে বাংলাদেশে পাঠিয়ে দেয়া হবে।’ শনিবার সাংবাদিকদের সঙ্গে আলাপকালে এসব কথা বলেছেন কট্টর হিন্দুত্ববাদী এই বিজেপি নেতা। তিনি দাবি করেন, বাংলাদেশিদের ধরে রাখতেই পশ্চিমবঙ্গে এনআরসি করতে দিতে রাজি হচ্ছেন না মমতা। তিনি মমতাকে কটাক্ষ করে বলেন, ‘পশ্চিমবঙ্গে বাংলাদেশ থেকে আসা নাগরিকদের ভোট নিজের করে নিতেই মমতা এনআরসির বিরোধিতা করছেন। ’ মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়কে তীব্র আক্রমণ করে কেন্দ্রে সুরেন্দ্র সিং আরও বলেন, ‘এটা নিশ্চিত যে পশ্চিমবঙ্গেও এনআরসি হবে। মমতা যদি বাংলাদেশিদের ধরে রাখতে চান তবে বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী হওয়ার চেষ্টা করা উচিত তার।’ তাই এনআরসি প্রয়োগ করে যারা ভারতের নাগরিক হিসেবে যোগ্যতা অর্জন করবেন না তাদের সম্মানজনকভাবে নিজেদের দেশের বাড়িতে পাঠিয়ে দেয়া হবে বলে মন্তব্য করেন তিনি। এসময় তিনি বলেন, ‘মমতা শত বাধা দিলেও পশ্চিমবঙ্গে এনআরসি কার্যকর করা হবে এবং সব বাংলাদেশির হাতে দুটি খাবাবের প্যাকেট ধরিয়ে তাদের দেশে পাঠিয়ে দেয়া হবে।’ এরপর হিন্দু মহাকাব্য রামায়ণ থেকে উদাহরণ টেনে আনেন সুরেন্দ্র সিং। তিনি বলেন, ‘লংকার মানুষ হনুমানজিকে প্রবেশের অনুমতি দেয়নি। তবু তিনি সেখানে প্রবেশ করেছিলেন এবং লংকা জয় করেছিলেন। একইভাবে যোগী আদিত্যনাথ ও অমিত শাহও পশ্চিমবঙ্গে প্রবেশ করেছেন এবং অনেক আসন জয় করেছেন। মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় সেই লংকার রাবণ। সেখানে রাম (বিজেপি সরকার) পা রেখেছেন। শিগগিরই পুরো পশ্চিমবঙ্গ জয় করবে বিজেপি।’ প্রসঙ্গত, শুরু থেকেই বিজেপি সরকারের কার্যক্রম এনআরসির বিরোধিতা করে আসছেন তৃণমূল কংগ্রেসের নেত্রী ও পশ্চিমবঙ্গের মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। আসামে এনআরসির ব্যাপক বিরোধিতা করেছেন তিনি। সেখানে হয়ে গেলেও পশ্চিমবঙ্গে কোনোভাবেই এনআরসি করার অনুমতি দেবেন না বলে হুশিয়ারি দিয়েছেন তিনি। বৃহস্পতিবার দুপুরে তৃণমূল নেতাকর্মীদের সঙ্গে নিয়ে কলকাতার সিঁথি থেকে শ্যামবাজার পর্যন্ত বিক্ষোভ মিছিল করেন তিনি। সূত্র: এনডিটিভি

ডাচ ম্যাগাজিনে শেখ হাসিনাকে নিয়ে কভার স্টোরি প্রকাশ

ঢাকা অফিস ॥ নেদারল্যান্ডের প্রথিতযশা পত্রিকা ডিপ্লোম্যাট ম্যাগাজিনের চলতি সংখ্যায় বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে নিয়ে ‘শেখ হাসিনা: দ্য মাদার অব হিউম্যানিটি’ শিরোনামে কভার স্টোরি প্রকাশ করেছে। চলতি সংখ্যার মোড়ক উন্মোচন উপলক্ষে স্থানীয় একটি হোটেলে আয়োজিত অনুষ্ঠানে ডিপ্লোম্যাটিক কোরের সদস্যবৃন্দ, আন্তর্জাতিক গণমাধ্যমে কর্মী, থিঙ্ক ট্যাঙ্কস, ব্যবসায়িক নেতৃবৃন্দ প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন। অনুষ্ঠানে চীন, মালয়েশিয়া, ইন্দোনেশিয়া, ভিয়েতনাম, ইরান, দক্ষিণ কোরিয়া, উজবেকিস্তান, প্যালেস্টাইন, ইয়েমেন, মরক্কো, তিউনিসিয়া, এংগোলা, সুইডেন, ফিনল্যান্ড, লক্সেমবার্গ, ইউক্রেন, বসনিয়া-হার্জেগোভিনা, ভ্যাটিকান, কসোভো, ব্রাজিল, কিউবা, পেরু, চিলি, ভেনিজুয়েলা এবং ইকুয়েডরের রাষ্ট্রদূতগণ, রাশিয়ান ফেডারেশন, জর্জিয়া, আর্জেন্টিনা এবং আজারবাইজেনের ভারপ্রাপ্ত রাষ্ট্রদূতগণ এবং মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র, কেনিয়া, পোল্যান্ড এবং পানামা দূতাবাসের কূটনৈতিক প্রতিনিধিগণ উক্ত উপস্থিত ছিলেন। ডিপ্লোম্যাট ম্যাগাজিনের প্রকাশক মিজ মেইলিন ডি লারা এবং নেদারল্যান্ডে বাংলাদেশের রাষ্ট্রদূত শেখ মুহম্মদ বেলাল উপস্থিত রাষ্ট্রদূতগণকে সাথে নিয়ে পত্রিকাটির মোড়ক উন্মোচন করেন। রাষ্ট্রদূত বেলাল প্রচ্ছদ হিসেবে মানবতার কল্যাণে নিবেদিতপ্রাণ প্রধানমন্ত্রীর ‘মাদার অব হিউম্যানিটি’ সংক্রান্ত খবরকে বেছে নেবার জন্য ডিপ্লোম্যাট ম্যাগাজিনকে ধন্যবাদ জানিয়ে উপস্থিত সকলকে জানান, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা মায়ানমারের রাখাইন রাজ্য থেকে জোরপূর্বক বাস্তুচ্যুত মায়ানমারের নাগরিকদের বাংলাদেশে আশ্রয় প্রদানের লক্ষ্যে বাংলাদেশ-মায়ানমার সীমান্ত উন্মুক্ত করে দেবার বলিষ্ঠ সিদ্ধান্ত গ্রহণ করে লাখ লাখ নির্যাতিত মানুষের জীবন রক্ষা করে বিশ্ববাসীর নিকট ‘মাদার অব হিউম্যানিটি’ হিসেবে পরিচিতি লাভ করেছেন। বাংলাদেশ সরকার নিজেদের অর্থনীতি, পরিবেশ এবং নিরাপত্তার ঝুঁকিকে উপেক্ষা করে শুধুমাত্র মানবিক কারণে যেভাবে নির্যাতিত রোহিঙ্গা জনগোষ্ঠীকে খাদ্য, বাসস্থান, স্বাস্থ্যসেবা, পানি ও পয়ঃনিষ্কাশন ইত্যাদি সুবিধাদি প্রদান করেছে সে সম্পর্কেও তিনি বিস্তারিত বর্ণনা করেন। রাষ্ট্রদূত বেলাল জোরপূর্বক বাস্তুচ্যুত মায়ানমারের নাগরিকদের নিরাপত্তা, মর্যাদা এবং মৌলিক প্রয়োজনসমূহ নিশ্চিত করে দ্রুত তাদের নিজেদের বাসভূমিতে ফিরে যেতে সহায়তা করার জন্য আন্তর্জাতিক সম্প্রদায়কে এগিয়ে আসার আহ্বান জানান। এছাড়া, রোহিঙ্গা সমস্যার স্থায়ী সমাধানের লক্ষ্যে বিচারহীনতার সংস্কৃতি বন্ধ করার প্রতিও তিনি জোর দেন।