ঝিনাইদহের সেই মৃত্যু পথযাত্রী ফজিলা খাতুনের পাশে দাঁড়ালেন স্বেচ্ছাসেবী সমাজ কল্যান সমিতি

ঝিনাইদহ প্রতিনিধি ॥ ঝিনাইদহের ভূয়া ডাক্তারের ২৭ পয়েন্ট ডায়াবেটিস থাকা অবস্থায় অপারেশন করে মৃত্যু পথযাত্রী ফজিলা খাতুনের পাশে দাঁড়িয়ে সাহায্যের হাত বাড়িয়ে দিলেন খেদাপাড়া স্বেচ্ছাসেবী সমাজ কল্যান সমিতি। বৃহস্পতিবার ঝিনাইদহ ডায়াবেটিস হাসপাতালে ফজিলা খাতুনকে চারহাজার পাঁচশত টাকা দিয়ে সহযোগীতা করলেন এই স্বেচ্ছাসেবী সংগঠন। সংগঠনের সভাপতি সোহরাব হোসেন ও সাধারণ সম্পাদক আবু বকর সিদ্দিকী জানান খেদা পাড়া গ্রামের ফজর আলী’র কন্যা অসহায় ফজিলা খাতুন নলডাঙ্গা বাজারের তপু মেডিকেল হলের পল্লী চিকিৎসকের ভুল চিকিৎসায় মৃত্যুর মুখে পতিত হয়ে ডায়াবেটিস হাসপাতালে ভর্তি হয়। আমরা এলাকা থেকে বাড়ি বাড়ি গিয়ে চাল এবং নগদ অর্থ উঠিয়ে তার চিকিৎসার জন্য সহযোগীতার হাত বাড়িয়ে দিচ্ছি। তারা আরও বলেন এলাকার অসহায় মানুষের পাশে থাকায় আমাদের সংগঠনের মুল উদ্দেশ্য। উল্লেখ যে, গত ৩ সেপ্টেম্বর অসুস্থ অবস্থায় ফজিলা খাতুন ভর্তি হয় ঝিনাইদহ ডায়াবেটিস হাসপাতালে এবং ৬ সেপ্টেম্বর বিভিন্ন সোসাল মিডিয়া এবং পত্র পত্রিকায় প্রকাশিত হয় ভূয়া ডাক্তারের ভূল চিকিৎসায় উপজেলার খেদাপাড়া গ্রামের ফজিলা খাতুন মৃত্যু পথযাত্রী। নলডাঙ্গা বাজারের তপু মেডিকেল হলের ভূয়া চিকিৎসক মনোজিৎ কুমার রোগির উচ্চ মাত্রায় ডায়াবেটিস থাকার পরেও হাতের অপারেশন করায় এই সমস্যা দেখা দেয়। ফজিলা খাতুন গত ৯দিন যাবৎ ঝিনাইদহ ডায়াবেটিস হাসপাতালে চিকিৎসাধীন রয়েছে এবং আরও ২০দিন থাকতে হবে বলে জানিয়েছেন হাসপাতালের চিকিৎসকরা।

আলমডাঙ্গার বেলগাছি ইউপির ৭ ও ৯নং ওয়ার্ড আওয়ামীলীগের কমিটি গঠন

আলমডাঙ্গা অফিস ॥ চুয়াডাঙ্গা জেলার আলমডাঙ্গা বেলগাছি ইউনিয়নের ৭ ও ৯ নং ওয়ার্ড আওয়ামীলীগের ত্রি-বার্ষিক সম্মেলন গতকাল শুক্রবার বিকেলে বেলগাছি ইউনিয়ন পরিষদ চত্বরে অনুষ্ঠিত হয়। বেলগাছি ইউনিয়ন আওয়ামীলীগের সভাপতি সমীর দে’র সভাপতিত্বে প্রধান অতিথি ছিলেন উপজেলা আওয়ামীলীগের ভারপ্রাপ্ত সাধারন সম্পাদক ইয়াকুব আলী মাষ্টার। প্রধান বক্তা ছিলেন উপজেলা আওয়ামীলীগের সহসভাপতি বেলগাছি ইউপি চেয়ারম্যান আমিরুল ইসলাম মন্টু। বিশেষ অতিথি ছিলেন উপজেলা আওয়ামীলীগের সহসভাপতি খন্দকার শাহ আলম মন্টু, সাংগঠনিক সম্পাদক আতিয়ার রহমান, বেলগাছি ইউনিয়নের সাবেক সভাপতি শওকত আলী শাহ, বেলগাছি ইউনিয়ন আওয়ামীলীগের যুগ্ম সম্পাদক আহসান উল্লাহ তোতা, সাংগঠনিক সম্পাদক মাহবুবুর রহমান, আওয়ামীলীগ নেতা মাহমুদুল হাসান চঞ্চল। বেলগাছি ইউনিয়ন আওয়ামীলীগের সাধারন সম্পাদক নজরুল ইসলামের উপস্থাপনায় বক্তব্য রাখেন নিজাম উদ্দিন, রবিউল ইসলাম, লাল্টু রহমান, বজলুর রহমান, মফিজ উদ্দিন, জমসেদ আলী প্রমুখ। সভায় সর্ব সম্মতিক্রমে ৭নং ওয়ার্ডে মফিজ উদ্দিনকে সভাপতি, আজাদ আলী শাহকে সাধারন সম্পাদক এবং ৯নং ওয়ার্ডে ইউনুস আলীকে সভাপতি ও তমছের আলীকে সাধারন সম্পাদক মনোনীত করে ৫১ সদস্য বিশিষ্ট দুটি ওয়ার্ড কমিটি গঠন করা হয়।

সৈয়দ আশরাফের অসমাপ্ত কাজ বাস্তবায়নের প্রতিশ্র“তি জনপ্রশাসন প্রতিমন্ত্রীর

ঢাকা অফিস ॥ কিশোরগঞ্জের কৃতিসন্তান আওয়ামী লীগের সাবেক সাধারণ সম্পাদক প্রয়াত সৈয়দ আশরাফুল ইসলামের অসমাপ্ত কাজগুলো বাস্তবায়নের প্রতিশ্র“তি দিয়েছেন জনপ্রশাসন প্রতিমন্ত্রী ফরহাদ হোসেন। গতকাল শুক্রবার সকালে কিশোরগঞ্জের কালেক্টরেট সম্মেলন কক্ষে অনুষ্ঠিত মতবিনিময় সভায় তিনি এ প্রতিশ্র“তি দেন। প্রতিমন্ত্রী বলেন, কিশোরগঞ্জ রেলওয়ে অঞ্চলের মানোন্নয়নে সহযোগিতা করা হবে, যাতে এ অঞ্চলের মানুষ নিরাপদে ও আরামদায়ক ভ্রমণ করতে পারেন। নরসুন্দা নদীর সৌন্দর্য বর্ধনসহ ঢাকা-কিশোরগঞ্জের মধ্যে চলাচলকারী আরও একটি ভালো মানের আন্তঃনগর ট্রেন চালু করার বিষয়টি তিনি সভায় উল্লেখ করেন। জেলা প্রশাসক (ডিসি) সারওয়ার মুর্শেদ চৌধুরীর সভাপতিত্বে সভায় বক্তব্য রাখেন- পুলিশ সুপার (এসপি) মাশরুকুর রহমান খালেদ, সিভিল সার্জন ডা. হাবিবুর রহমান, অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (সার্বিক) আব্দুল্লাহ আল-মাসউদ, অতিরিক্ত জেল প্রশাসক (শিক্ষা ও আইসিটি) মোহাম্মদ হাবিবুর রহমান, জেলা আওয়ামী লীগের সিনিয়র সহ-সভাপতি ও জিপি বিজয় শংকর রায়, জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক অ্যাডভোকেট এমএ আফজল, কিশোরগঞ্জ পৌরসভার মেয়র পারভেজ মিয়া, কিশোরগঞ্জ সরকারি মহিলা কলেজের অধ্যক্ষ প্রফেসর হাবিবুর রহমান, কৃষি সম্প্রসারণ অধিদফতরের উপ-পরিচালক মশিউর রহমান, জেলা মুক্তিযোদ্ধা সংসদের সাবেক কমান্ডার আসাদ উল্লাহ, জেলা মহিলা আওয়ামী লীগের যুগ্ম-আহ্বায়ক বিলকিছ বেগম, জেলা কৃষক লীগের সাধারণ সম্পাদক আনোয়ার হোসেন বাচ্চু প্রমুখ। সভা শেষে চাচা শ্বশুর সৈয়দ নজরুল ইসলামের যশোদলের বাড়ি সংলগ্ন মসজিদে জুমার নামাজ আদায় করেন এবং শাশুড়ি সৈয়দা আমেনা খাতুনের মৃত্যুবার্ষিকী উপলক্ষে মিলাদ ও দোয়া মাহফিলে যোগ দেন প্রতিমন্ত্রী ফরহাদ হোসেন। বিকেলে জেলা শিল্পকলা একাডেমি মিলনায়তনে গুণিজন সংবর্ধনা অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে তিনি যোগ দেবেন। এছাড়াও রাতে কিশোরগঞ্জ সার্কিট হাউসে জেলায় কর্মরত বিসিএস প্রশাসন ক্যাডার কর্মকর্তাদের সঙ্গে মতবিনিময় ও নৈশভোজে যোগ দেওয়ার কথা রয়েছে তার।

ঢাকার সব আদালতে টাঙানো হয়েছে বঙ্গবন্ধুর ছবি

ঢাকা অফিস ॥ ঢাকার চিফ মেট্রোপলিটন ম্যাজিস্ট্রেট, চিফ জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট, জেলা ও দায়রা জজ আদালত ও মহানগর দায়রা জজ আদালতের প্রতিটি এজলাসে টানানো হয়েছে বঙ্গবন্ধুর ছবি। গতকাল শুক্রবার ঢাকার চিফ মেট্রোপলিটন ম্যাজিস্ট্রেট আদালতের নাজির শাকিলুর রহমান বলেন, মহামান্য হাইকোর্টের নির্দেশ অনুযায়ী ঢাকার সব মেট্রোপলিটন ম্যাজিস্ট্রেট আদালতে বঙ্গবন্ধুর ছবি টানানো হয়েছে। এদিকে, গত বৃহস্পতিবার ঢাকার বিভিন্ন আদালতের এজলাসে গিয়ে দেখা গেছে, বিচারকের চেয়ারের ঠিক ওপর বরাবর টানানো হয়েছে বঙ্গবন্ধুর ছবি। এর আগে গত ২৯ আগস্ট আগামি দুই মাসের মধ্যে দেশের সব আদালতে বঙ্গবন্ধুর ছবি টাঙানোর নির্দেশ দিয়েছিলেন হাইকোর্ট। ওই দিন বিচারপতি এফ আর এম নাজমুল আহাসান ও কে এম কামরুল কাদেরের হাইকোর্ট বেঞ্চ এ-সংক্রান্ত এক রিট আবেদনের শুনানি শেষে এ আদেশ দেন। রিটের পক্ষে শুনানি করেন অ্যাডভোকেট সুবীর নন্দী। এর আগে গত ২৮ আগস্ট সুবীর নন্দী হাইকোর্টে এ-সংক্রান্ত একটি রিট দাখিল করেন। রাষ্ট্রপক্ষে ছিলেন ডেপুটি অ্যাটর্নি জেনারেল আবদুল্লাহ আল মাহমুদ বাশার। রিটকারী অ্যাডভোকেট সুবীর নন্দী সাংবাদিকদের বলেন, সব প্রতিষ্ঠানে বঙ্গবন্ধুর ছবি টাঙানোর আইন থাকলেও আদালত প্রাঙ্গণে তা কার্যকর হচ্ছে না। একমাত্র ধর্মীয় উপাসনালয়গুলো ছাড়া অন্য জায়গায় বঙ্গবন্ধুর ছবি টানাতে বাধা নেই। কিন্তু আদালত অঙ্গনে এ আইন বাস্তবায়ন করা হয়নি। হাইকোর্টের নির্দেশমতে আইন সচিব এবং সুপ্রিম কোর্টের রেজিস্ট্রার জেনারেলকে এ আদেশ বাস্তবায়ন করতে বলা হয়েছে।

কুষ্টিয়ায় যুব নেটওয়ার্কের যাত্রা শুরু

নিজ সংবাদ ॥ টেকসই উন্নয়ন লক্ষ্যমাত্রা অর্জনে অবদান রাখার লক্ষ্যে কুষ্টিয়ায় একটি যুব নেটওয়ার্ক আত্মপ্রকাশ করেছে। বিভিন্ন সামাজিক উদ্যোগ গ্রহণের জন্য কুষ্টিয়ার তরুণদের সংযোগ স্থাপনের মাধ্যমে একটি প্লাটফর্ম তৈরির স্বপ্ন নিয়ে নেটওয়ার্কটি গঠন করা হয়। গতকাল শহরের একটি স্বনামধন্য রেঁস্তোরা খেয়াতে আলো স্বেচ্ছাসেবী পল্লী উন্নয়ন সংস্থার আয়োজনে এবং একশন-এইড বাংলাদেশের সহযোগিতায় এক সভার মধ্য দিয়ে নেটওয়ার্কটি যাত্রা শুরু করে। আলো’র সভাপতি অধ্যাপক আনোয়ার হোসেনের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত সভায় উপস্থিত ছিলেন ইবি কর্মকর্তা ড. আমানুর আমান, বিশিষ্ট সমাজকর্মী কুষ্টিয়া সরকারী মহিলা কলেজের সহযোগী অধ্যাপক অজয় মৈত্র, দৈনিক মাটির পৃথিবীর সম্পাদক ও প্রকাশক এবং লতা সংস্থার নির্বাহী পরিচালক এম.এ.জিহাদ, আলো’র নির্বাহী পরিচালক ফিরোজ আহাম্মেদ ও বিভিন্ন সামাজিক সংগঠনে নেতৃত্ব প্রদানকারী তরুণরা। সভায় কুষ্টিয়া জেলার বিভিন্ন স্থানীয় সামাজিক ইস্যু চিহ্নিত করা হয়। স্থানীয় তরুণরা এসকল ইস্যুতে কুষ্টিয়া জেলার যুব সম্প্রদায়কে একত্র করে নেটওয়ার্কের সাথে থেকে কাজ করার দৃঢ় প্রত্যয় ব্যক্ত করেন। এছাড়াও সমাজে শান্তি প্রতিষ্ঠা ও জলবায়ু পরিবর্তন বিষয়ে গঠনমূলক আলোচনা ও বিভিন্ন উদ্যোগ গ্রহণের ব্যাপারে সিদ্ধান্ত গৃহীত হয়। এসময় বক্তারা বলেন, বাংলাদেশ বর্তমানে জনসংখ্যার দিক দিয়ে একটি স্বর্ণালী সময় পার করছে। কারণ বর্তমানে দেশের এক-তৃতীয়াংশের বেশী মানুষ যুব সম্প্রদায়, যা পৃথিবীর অনেক দেশের তুলনায় অনেক বেশী। তাই সরকার এবং বিভিন্ন বেসরকারী উন্নয়ন সংস্থাগুলো এখন তরুণদের সাথে নিয়ে উন্নয়ন অগ্রযাত্রা চলমান রাখতে চাচ্ছে। তরুণরাই পারে একটি দেশ ও সমাজকে ইতিবাচকভাবে বদলে দিতে। তাই সমাজ তথা দেশের জন্য ভালো কিছু করার লক্ষ্যে তরুণদের ঐক্যবদ্ধ হওয়ার কোন বিকল্প নেই। গঠিত নেটওয়ার্কটি ক্রমশঃ বৃহৎ হওয়ার মধ্য দিয়ে সমাজকে এগিয়ে নিয়ে যাবে বলে অংশগ্রহণকারীরা আশাবাদ ব্যক্ত করেন।

সরকারের হস্তক্ষেপেই ছাত্রদলের কাউন্সিলে স্থগিতাদেশ – ফখরুল

ঢাকা অফিস ॥ সরাসরি সরকারের হস্তক্ষেপ আছে বলেই ছাত্রদলের কাউন্সিলে স্থগিতাদেশ দেয়া হয়েছে উল্লেখ করে বিএনপির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর দাবি করেছেন, ছাত্রদলের কাউন্সিল অনুষ্ঠানের সঙ্গে বিএনপি জড়িত নয়। গতকাল শুক্রবার সন্ধ্যায় গুলশানে বিএনপি চেয়ারপারসনের রাজনৈতিক কার্যালয়ে দলটির সিনিয়র নেতাদের সঙ্গে বৈঠক শেষে সংবাদ ব্রিফিংয়ে তিনি এ কথা বলেন। মির্জা ফখরুল বলেন, ছাত্রদলের বিষয়ে ছাত্রদল নেতারা আলাপ করছেন। তারা সিদ্ধান্ত নেবে। এটা তাদের ব্যাপার। আমরা বিএনপি এটার সঙ্গে জড়িত নই। আমাদেরকে যেটা পক্ষ করা হয়েছে আমরা আমাদের উত্তরগুলো কোর্টের কাছে যথাসময়ে দেব। ছাত্রদলের সিদ্ধান্ত ছাত্রদলই নেবে। কাউন্সিলের কী হবে-এমন প্রশ্নে বিএনপি মহাসচিব বলেন, এটা ছাত্রদলই করবে। এটা তারা বলবে। আমি বিএনপির সেক্রেটারি জেনারেল হিসেবে এ কথা বলছি না। এটা তারা বলবে। ছাত্রদলের তো কমিটি নেই-এ বিষয়ে দৃষ্টি আকর্ষণ করা হলে ফখরুল বলেন, এ বিষয়ে যারা দায়িত্বে আছেন তারা বলবেন। ব্রিফিংয়ের শুরুতেই বিএনপি মহাসচিব বলেন, আপনারা সবাই ছাত্রদলের কাউন্সিলের স্থগিতাদেশের ব্যাপারে জানতে আগ্রহী, কী সিদ্ধান্ত? এরপর তিনি বলেন, হঠাৎ করে এ বিষয়টা সামনে এসেছে, একেবারে শেষ মুহূর্তে সকলের অগোচরে। বোঝা যায়, এখানে সরাসরি সরকারের হস্তক্ষেপ আছে বলেই স্থগিতাদেশ দেয়া হয়েছে। এ সময় তিনি প্রশ্ন রাখেন- আসলে বর্তমানে সরকার যারা আছেন তারা কি চান বাংলাদেশে নূন্যতম গণতন্ত্রের পরিস্থিতি, পরিবেশ থাকুক? বিএনপি মহাসচিব বলেন, আজকে বর্তমান সরকার যে কালচার তৈরি করেছে, রাজনৈতিক সংস্কৃতি তৈরি করেছে, এটা ভয়বাহ। তা হলো আদালতকে দিয়ে রাজনীতি নিয়ন্ত্রণ করা। গত দশ বছর ধরে তারা এই সংস্কৃতি তৈরি করেছে। সরকার আদালতকে ব্যবহার করে বিভিন্ন আইন-কানুন তৈরি করে গণতান্ত্রিক অধিকার কেড়ে নিয়েছে বলে অভিযোগ করেন বিএনপি মহাসচিব। তিনি বলেন, আদালতকে প্রশ্নবিদ্ধ করে দেয়া, আদালতকে দলীয়করণের দিকে নেয়া দেশ ও জাতির জন্য শুভ নয়। তিনি আরও বলেন, রাজনীতিতে আদালতের হস্তক্ষেপ কখনোই কোনো গণতান্ত্রিক রাষ্ট্রের জন্য, জাতির ভবিষ্যতের জন্য শুভ হতে পারে না। তিনি বলেন, একটা দল আসবে একটা দল যাবে-এটাই নিয়ম। কিন্তু তারা যদি ভাবেন যতদিন পৃথিবী থাকবে ততদিন তারা থাকবেন, তাহলে তারা বোকার স্বর্গে বাস করছেন।

আওয়ামী লীগ প্রতিহিংসার রাজনীতিতে বিশ্বাস করে না ঃ হাছান মাহমুদ

ঢাকা অফিস ॥ আওয়ামী লীগ কখনো প্রতিহিংসার রাজনীতিতে বিশ্বাস করে না এ কথা দৃঢ়তার সাথে উল্লেখ করে তথ্যমন্ত্রী ড. হাছান মাহমুদ বিএনপিকে দলটির প্রতিষ্ঠাতা জিয়াউর রহমানের প্রতিহিংসার রাজনীতির পথ পরিহারের আহ্বান জানিয়েছেন। আওয়ামী লীগ বিরোধী দলমুক্ত বাংলাদেশ গড়ার লক্ষ্যে কাজ করছে এবং প্রতিহিংসার বশবর্তী হয়ে বিএনপি চেয়ারপার্সন বেগম খালেদা জিয়াকে কারাগারে পাঠিয়েছে- বিএনপি মহাসচিবের সাম্প্রতিক এই অভিযোগ প্রত্যাখ্যান করেন তথ্যমন্ত্রী। তিনি গতকাল শুক্রবার রাজধানীর বঙ্গবন্ধু এ্যাভেনিউতে ঢাকা মহানগর আওয়ামী লীগ দক্ষিণ শাখা কার্যালয়ে বঙ্গবন্ধু সাংস্কৃতিক জোট আয়োজিত এক আলোচনা সভায় বলেন, বাস্তবতা হচ্ছে এ দেশে জিয়াউর রহমানই প্রতিহিংসার রাজনীতি শুরু করেন এবং বেগম জিয়া এটাকে চরম পর্যায়ে নিয়ে যান। বঙ্গবন্ধু সাংস্কৃতিক জোট উপমহাদেশের অন্যতম প্রভাবশালী নেতা হোসেন শহীদ সোহরাওয়ার্দীর ১২৭তম জন্মবার্ষিকী উপলক্ষে এই আলোচনা সভার আয়োজন করে। অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তৃতায় তথ্যমন্ত্রী এবং আওয়ামী লীগের প্রচার ও প্রকাশনা সম্পাদক হাছান মাহমুদ বলেন, ১৯৭৫ সালের ১৫ আগস্ট জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান ও তাঁর পরিবারের অধিকাংশ সদস্যের হত্যাকান্ডের দিনে বেগম খালেদা জিয়া ১৯৯২ সাল থেকে ১৫ আগস্টে তার জন্মদিন পালন করছেন। কেবল প্রতিসিংসার কারণে তিনি তার জন্মদিন পরিবর্তন করেছেন। তথ্যমন্ত্রী বলেন, রাষ্ট্রীয় পৃষ্ঠপোষকতায় এবং তার ছেলে তারেক রহমানের নেতৃত্বে তদানীন্তন বিরোধী দলীয় নেতা শেখ হাসিনাকে হত্যা ও আওয়ামী লীগকে নেতৃত্বহীন করতে ২০০৪ সালের ২১ আগস্ট বঙ্গবন্ধু এ্যাভেনিউয়ে আওয়ামী লীগের জনসমাবেশে গ্রেনেড হামলা চালানো হয়েছিল। তিনি আরো বলেন, বিএনপি যখন ক্ষমতায় ছিল তখন শাহ এ এম এস কিবরিয়া ও আহসানুল্লাহ মাস্টারসহ আওয়ামী লীগের অনেক নেতৃবৃন্দ বোমা হামলায় নিহত হয়েছেন, কিন্তু আওয়ামী লীগ সরকারের সময় বিএনপির ওপর হামলার এমন কোন ঘটনা ঘটেনি। আওয়ামী লীগ নেতা বলেন, এ ঘটনাগুলেঅই প্রমাণ করে বিএনপি প্রতিহিংসার রাজনীতির সঙ্গে জড়িত। এজন্য তাদের জাতির কাছে ক্ষমা চাওয়া উচিৎ।  সোহরাওয়ার্দীকে ‘গণতন্ত্রের চ্যাম্পিয়ন’ আখ্যায়িত করে রাজনীতিতে তার অবদানের কথা স্মরণ করে হাছান বলেন, বাংলাদেশের বিভিন্ন অর্জনে তার নাম যুক্ত রয়েছে। বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান বাঙালি জাতির প্রতিষ্ঠাতা। তিনি বাঙালি জাতিকে উচ্চ মর্যাদায় অধিষ্ঠিত করেছিলেন। আর তাঁর কন্যা আওয়ামী লীগ সভাপতি ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা জাতির পিতার অসমাপ্ত কাজ বাস্তবায়ন করছেন। ড. হাছান বলেন, সোহরাওয়ার্দী তখন বঙ্গবন্ধুর রাজনৈতিক বিচক্ষণতা দেখে ঘনিষ্ঠ হয়েছিলেন। বঙ্গবন্ধু সাংস্কৃতিক জোটের সভাপতি সারাহ্ বেগম কবরীর সভাপতিত্বে আলোচনায় আরো বক্তব্য রাখেন, আওয়ামী লীগের উপ প্রচার ও প্রকাশনা সম্পাদক আমিনুল ইসলাম আমিন, ঢাকা মহানগর দক্ষিণ আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক শাহে আলম মুরাদ, যুবলীগের সাংগঠনিক সম্পাদক বদিউল আলম বদি, বঙ্গবন্ধু সাংস্কৃতিক জোটের সাধারণ সম্পাদক অরুণ সরকার রানা, সংগীত শিল্পী রফিকুল আলম এবং অভিনেত্রী অরুণা বিশ্বাস।

শেখ হাসিনার নেতৃত্বে খেলাধুলায় এগিয়ে যাচ্ছে বাংলাদেশ – শিল্পমন্ত্রী

ঢাকা অফিস ॥ শিল্পমন্ত্রী নূরুল মজিদ মাহমুদ হুমায়ূন বলেছেন, বঙ্গবন্ধুর কন্যা প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে বাংলাদেশ খেলাধুলায় এগিয়ে যাচ্ছে। ফুটবলের হারানো গৌরব ফেরাতে সরকারের পক্ষ থেকে স্কুল পর্যায়ে বঙ্গবন্ধু ও বঙ্গমাতা গোল্ড কাপ ফুটবল টুর্নামেন্ট চালু হয়েছে। বিভাগীয় এবং জেলা পর্যায়ে বিভিন্ন ফুটবল খেলার আয়োজন করা হচ্ছে। যার কারণে শিক্ষার্থীদের খেলাধুলায় অংশগ্রহণ বাড়ছে এবং তা এখন ছড়িয়ে পড়েছে গ্রাম-বাংলায়। তাতে আমাদের আন্তর্জাতিক মানের খেলোয়াড় তৈরি হবে। গতকাল শুক্রবার দুপুরে নরসিংদীর বেলাব সরকারি পাইলট মডার্ন উচ্চবিদ্যালয় মাঠে আয়োজিত জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান জাতীয় গোল্ডকাপ ফুটবল টুর্নামেন্ট ফাইনাল খেলায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন। তিনি বলেন, যুব সমাজকে মাদক থেকে রক্ষা করতে খেলাধুলার বিকল্প নেই। খেলাধুলাই পারে শিশুদের মধ্যে শৃঙ্খলা ফেরাতে। এই বিভাগে সরকারের বিশেষ নজর থাকায় অর্জনও অব্যাহত রয়েছে। জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান জাতীয় গোল্ডকাপ ফুটবল টুর্নামেন্ট ফাইনাল খেলার অনুষ্ঠানে বেলাব উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা শামীমা শরমিনের সভাপতিত্বে অন্যান্যের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন-বেলাব উপজেলা চেয়ারম্যান সমশের জামান ভূঁইয়া রিটন, ভাইস চেয়ারম্যান মনিরুজ্জামান ভূইয়া, মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান শারমিন আক্তার খালেদাসহ সব ইউনিয়নের চেয়ারম্যান ও উপজেলা প্রশাসনের কর্মকর্তারা। পরে জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান জাতীয় গোল্ডকাপ ফুটবল টুর্নামেন্ট ফাইনাল খেলায় বিজয়ীদের হাতে পুরস্কার তুলে দেন শিল্পমন্ত্রী।

ইবি শিক্ষকের মায়ের মৃত্যুতে  ভিসি’র শোক

ইসলামী বিশ্ববদ্যালয়ের ভাইস-চ্যান্সেলর প্রফেসর ড. মোঃ হারুন-উর-রশিদ আসকারী (ড. রাশিদ আসকারী) কম্পিউটার সায়েন্স বিভাগের শিক্ষক প্রফেসর মোঃ ইব্রাহীম আব্দুল্লাহের মাতা মোছাঃ আমেনা বেগম (৭১) এর মৃত্যুতে গভীর শোক ও দুংখ প্রকাশ করেছেন। শোকবার্তায়  তিনি মরহুমার রুহের মাগফিরাত কামনা করেন এবং শোকসন্তপ্ত পরিবারের প্রতি গভীর সমবেদনা জানান। অপর শোকবার্তায় প্রো-ভিসি প্রফেসর ড. মোঃ শাহিনুর রহমান ও ট্রেজারার প্রফেসর ড. মোঃ সেলিম তোহা মোছাঃ আমেনা বেগমের মৃত্যুতে গভীর শোক ও দুংখ প্রকাশ করেছেন। শোকবার্তায় মরহুমার রুহের মাগফিরাত কামনা করেন এবং শোক সন্তপ্ত পরিবারের প্রতি গভীর সমবেদনা জ্ঞাপন করেন। এছাড়া অপর এক শোকবার্তায় বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রগতিশীল শিক্ষক সংগঠন শাপলা ফোরামের সভাপতি প্রফেসর ড. মোঃ রেজওয়ানুল ইসলাম ও সাধারন সম্পাদক প্রফেসর ড. মোঃ মাহবুবর রহমানসহ ফোরামের নেতৃবৃন্দ গভীর শোক ও দুংখ প্রকাশ এবং  মরহুমার রুহের মাগফিরাত কামনা করেন ও শোকসন্তপ্ত পরিবারের প্রতি গভীর সমবেদনা জ্ঞাপন করেন। কম্পিউটার সায়েন্স বিভাগের শিক্ষক প্রফেসর মোঃ ইব্রাহীম আব্দুল্লাহের মাতা মোছাঃ আমেনা বেগম বাধ্যর্কজনিত কারনে শুক্রবারে সকালে কুষ্টিয়ার ভেড়ামারায় নিজ বাসভবনে ইন্তেকাল করেন। বাদ মাগরিব নামাজে জানাযা শেষে মরহুমাকে স্থানীয় কবরস্থানে দাফন করা হয়। সংবাদ বিজ্ঞপ্তি

ইতিহাস বিকৃতিকারীরা হারিয়ে গেছে – নৌ প্রতিমন্ত্রী

ঢাকা অফিস ॥ দেশে মুক্তিযুদ্ধের চেতনা প্রতিষ্ঠিত হওয়ায় ইতিহাস বিকৃতিকারীরা হারিয়ে গেছে বলে মন্তব্য করেছেন আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক ও নৌ প্রতিমন্ত্রী খালিদ মাহমুদ চৌধুরী। শুক্রবার বিকালে দিনাজপুরের বিরল পাইলট স্কুল মাঠে জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান গোল্ডকাপ ফুটবল টুর্নামেন্টের উপজেলা পর্যায়ের ফাইনাল খেলার পুরস্কার বিতরণী অনুষ্ঠানে এ মন্তব্য করেন তিনি। তরুণদের সঠিক ইতিহাস জানার পরামর্শ দিয়ে নৌ প্রতিমন্ত্রী বলেন, যারা পঁচাত্তরের ইতিহাস বিকৃত করেছিল তারা টিকে নেই। বাঙালিরা জাতির পিতাকে বঙ্গবন্ধু উপাধি দিয়েছিল। জাতিসংঘ বলছে তিনি শুধু বঙ্গবন্ধু নন; তিনি বিশ্ববন্ধু। সমগ্র বিশ্ব আজকে বঙ্গবন্ধুকে অনুসরণ করছে। এটাই ইতিহাসের শিক্ষা। তরুণ প্রজন্মকে এই ইতিহাস জানতে হবে। নতুন প্রজন্মকে খেলা-ধুলায় উদ্বুদ্ধ হওয়ার আহ্বান জানিয়ে খালিদ মাহমুদ চৌধুরী বলেন, আজকের তরুণরাই আগামীতে বাংলাদেশের হাল ধরবে। সকল ক্ষেত্রে তরুণদের এগিয়ে আসতে হবে। দেশকে এগিয়ে নিতে তরুণ প্রজন্মের খেল-ধুলায় উদ্বুদ্ধ হতে হবে। ক্রীড়াঙ্গন ও সাংস্কৃতিক অঙ্গনকে এগিয়ে নিতে তরুণদের সামনে এগিয়ে আসতে হবে। এই অনূর্ধ্ব ১৭ জাতির জনক বঙ্গবন্ধু ফুটবল টুর্নামেন্ট সারা দেশে চলছে। উপজেলা পর্যায় শেষে জেলা, পরে বিভাগীয় ও সারা দেশের সেরা ফুটবলারদের বেছে নেওয়া হবে। তিনি বলেন, মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে বাংলাদেশ সবক্ষেত্রে এগিয়ে যাচ্ছে। প্রত্যেক উপজেলার ক্রীড়াঙ্গন এখন মুখরিত। আজকে বিরল উপজেলা ক্রিড়াঙ্গনও মুখরিত। টুর্নামেন্টে ৪নং শহরগ্রাম ইউনিয়নকে ১-০ গোলে হারিয়ে চ্যাম্পিয়ন হয়েছে ১০ নং রাণীপুকুর ইউনিয়ন। বৃষ্টিস্নাত বিকেলে কয়েক হাজার খেলা উপভোগ করেন। পরে প্রতিমন্ত্রী খেলোয়াড়দের হাতে পুরস্কার তুলে দেন। উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা এ বি এম রওশন কবিরের সভাপতিত্বে পুরস্কার বিতরণী অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন- বিরল উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ও উপজেলা চেয়ারম্যান মোস্তাফিজুর রহমান বাবু, বিরল পৌর সভার মেয়র সবুজার সিদ্দিক সাগর, উপজেলা ক্রীড়া সংস্থার সাধারণ সম্পাদক আব্দুল মালেক, বোচাগঞ্জ উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক আফছার আলী, সাবেক মুক্তিযোদ্ধা কমান্ডার আবুল কাশেম অরু প্রমুখ।

আমরা অনেক সত্য কথা বলতে পারি না – এমপি বাদল

ঢাকা অফিস ॥ জাতীয় সমাজতান্ত্রিক দলের (জাসদ) একাংশের কার্যকরী সভাপতি মইনউদ্দিন খাঁন বাদল এমপি বলেছেন, আমরা সরকারি দলে আছি। কিন্তু প্রধানমন্ত্রী আমাদের পারমিশন দিয়েছেন যাতে আমরা বিরোধী দলের মতো কথা বলি। তারপরও অনেক সত্য কথা বলতে পারি না। আজও অনেক সত্য বলতে পারব না। তবে ইতিপূর্বে সংসদে যেসব কথা বলেছি সেসব কথাই বলব। তাহলে সরকার আমাকে ধরতে পারবে না। শুক্রবার জাতীয় প্রেস ক্লাবের তোফাজ্জল হোসেন মানিক মিয়া হলে যাত্রী অধিকার দিবস ঘোষণা উপলক্ষে এক আলোচনা সভায় তিনি এসব কথা বলেন। এমপি বাদল বলেন, সংসদে ৭০ ভাগ কোটিপতি এমপি আছে। অথচ ৩০ বছর আগে তারা বাসে চলাচল করেছেন। আমি সরকারকে বলেছি, আমাদের ফুটপাত দখলদারমুক্ত করুন। যাতে মানুষ হেঁটে চলাচল করতে পারে। এতে গণপরিবহণের ওপর চাপ কমবে। হাসপাতালে ডায়াবেটিস রোগী কমে যাবে। কিন্তু ফুটপাত ঠিক করা হচ্ছে না। চট্টগ্রাম শহরকে পৃথিবীর অষ্টম আশ্চর্য উল্লেখ করে বাদল বলেন, সেখানে ফ্লাইওভারের উপরে পানি, নিচেও পানি। তিনি বলেন, যারা আইন তৈরি করেন তারাই আইন লঙ্ঘন করেন। আইন প্রয়োগকারী সংস্থার সদস্যরাও আইন লঙ্ঘন করেন। নতুন আইন হলে পুলিশ খুশি হয়। কারণ ওই আইনে ২জন অপরাধী আটক হয়। আর নিরপরাধী আটক হয় ৯৮ জন। আর ৯৮ জন নিরপরাধীকে ছেড়ে দেয়ার বিনিময়ে টাকা আদায় করে পুলিশ। এ সময় রাজধানীতে জনদুর্ভোগ কমাতে প্রধানমন্ত্রীকে হেলিকপ্টার ব্যবহারের পরামর্শ দেন মইনউদ্দিন খাঁন বাদল। তিনি বলেন, পৃথিবীর অনেক দেশে প্রধানমন্ত্রী পায়ে হেঁটে বাজারে যান। তাদের জন্য প্রটেকশনের প্রয়োজন হয় না। অথচ আমাদের দেশে প্রধানমন্ত্রী যখন কোনো রাস্তা দিয়ে চলাচল করেন তখন আশপাশের অনেক রাস্তা বন্ধ থাকে। তখন মানুষের ভোগান্তি চরমে উঠে। তাই প্রধানমন্ত্রীকে বলেছি, রাজধানীতে চলাচলের জন্য আপনি প্রয়োজনে হেলিকপ্টার ব্যবহার করুন। তবু মানুষকে কষ্ট দেবেন না। যাত্রী কল্যাণ সমিতির মহাসচিব মোজাম্মেল হক চৌধুরীর সভাপতিত্বে সভায় আরও বক্তব্য দেন সাবেক তত্ত্বাবধায়ক সরকারের উপদেষ্টা ও টিআইবি ট্রাস্টির চেয়ারপারসন সুলতানা কামাল, গণসংহতি আন্দোলনের প্রধান সমন্বয়ক জোনায়েদ সাকি, সাংবাদিক আবু সাঈদ খাঁন, ট্রাক-কাভার্ডভ্যান মালিক সমিতির যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক হোসেন আহমদ মজুমদার, নাগরিক সংহতির সাধারণ সম্পাদক শরীফুজ্জামান শরীফ।

 

দৌলতপুর সীমান্তে মদ উদ্ধার

দৌলতপুর প্রতিনিধি ॥ কুষ্টিয়ার দৌলতপুর সীমান্ত থেকে ২০ বোতল ভারতীয় মদ উদ্ধার করেছে বিজিবি। গতকাল শুক্রবার ভোররাত পৌনে ৩টার দিকে উপজেলার রামকৃষ্ণপুর ইউনিয়নের ঠোটারপাড়া সীমান্ত এলাকা থেকে এ মদ উদ্ধার করা হয়। বিজিবি সূত্র জানায়, মাদক বিরোধী অভিযানে আশ্রয়ন বিওপি’র টহল দল ঠোটারপাড়া নামক স্থানে অভিযান চালিয়ে ২০ বোতল ভারতীয় মদ উদ্ধার করে। তবে উদ্ধার হওয়া মাদকের সাথে জড়িত কেউ আটক হয়নি।

সাবেক ছাত্রলীগ নেতা সালেহীনের পিতার কুলখানী ও দোয়া অনুষ্ঠানে আজগর আলী

পুলিশ কর্মকর্তা মরহুম লতিফের মত দেশ প্রেমিক মানুষ আজকের সমাজে বিরল

মিলন আলী  ॥ কুষ্টিয়া সদর উপজেলা ছাত্রলীগের সাবেক নেতা ঝাউদিয়ার কৃতি সন্তান সালেহীনের পিতা সাবেক পুলিশ কর্মকর্তা মরহুম আব্দুল লতিফের কুলখানী ও দোয়ার অনুষ্ঠান ঝাউদিয়া আস্থানগর গ্রামে সালেহীনের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত হয়। মরহুম আব্দুল লতিফের কুলখানী অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি ছিলেন জেলা আওয়ামীলীগের সাধারন সম্পাদক বীর মুক্তিযোদ্ধা আজগর আলী। তিনি বলেন, আজকের সমাজে মরহুম আব্দুল লতিফের মত দেশ প্রেমিক সাহসী দক্ষ পুলিশ অফিসার বিরল। অতএব আজকের বাংলাদেশে আরও উন্নতির দিকে ধাবিত করতে হলে মরহুমের মত পুলিশ কর্মকর্তা প্রয়োজন। বিশেষ অতিথি ছিলেন, সদর উপজেলা আওয়ামীলীগের সাধারন সম্পাদক সাবেক আলামপুরের চেয়ারম্যান আক্তারুজ্জামান বিশ্বাস, সদর উপজেলা আ.লীগের যুগ্ম-সাধারন সম্পাদক  গোলাম মওলা, কুষ্টিয়া পৌরসভার মেয়রের ছেলে ছাত্রলীগের সাবেক নেতা পারভেজ আনোয়ার তনু, কুমারখালী থানা যুবলীগের সেক্রেটারী চাপড়া ইউপি চেয়ারম্যান মনির হাসান, সদর উপজেলা আ.লীগের সহ-সভাপতি আব্দুর রশিদ, আ.লীগ নেতা মিজানুর রহমান, রেজাউল করিম, কাঞ্চনপুর ইউনিয়ন আ.লীগের সাধারন সম্পাদক সেকেন্দার আলী, ঝাউদিয়া ইউনিয়ন যুবলীগের সাধারন সম্পাদক সবুজ বিশ্বাস, প্রভাষক শহিদুল ইসলাম, প্রভাষক সিহাব উদ্দিন, ঝাউদিয়া ইউনিয়ন আ.লীগের সভাপতি সাবেক চেয়ারম্যান বকতিয়ার হোসাইন, ঝাউদিয়া ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান আ.লীগ নেতা কেরামত আলী বিশ্বাস, পাটিকাবাড়ী ইউনিয়ন আ.লীগের সভাপতি সাইদুর রহমান বিশ্বাস, গোস্বামী দুর্গাপুর ইউনিয়ন আ.লীগের সাবেক যুগ্ম-সাধারন সম্পাদক জিয়ারুল ইসলাম, সাংবাদিক কামরুল ইসলাম, আওয়ামীলীগ নেতা শাহিন চৌধুরী, কাজল ইসলাম। মরহুমের আত্মার মাগফিরাত কামনা ও কালাম পাঠ করে বিশেষ দোয়া পরিচালনা করা হয়।

এডিবি ২০২০-২২ অর্থবছরে বাংলাদেশকে পাঁচ বিলিয়ন ডলার অর্থ সহায়তা দেবে

ঢাকা অফিস ॥ এশিয়ান ডেভেলপমেন্ট ব্যাংক (এডিবি) ২০২০-২০২২ অর্থবছরে বাংলাদেশকে দ্রুত, অন্তর্ভুক্তিমূলক ও টেকসই প্রবৃদ্ধির জন্য পাঁচ বিলিয়ন ডলারের উন্নয়ন সহায়তা দেয়ার কথা জানিয়েছে। বাংলাদেশে এডিবির কান্ট্রি ডিরেক্টর মনমোহন প্রকাশ গত ১১ সেপ্টেম্বর প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সঙ্গে তাঁর পার্লামেন্ট অফিসে সাক্ষাৎ করেন এবং তাকে বাংলাদেশের জন্য এডিবি’র উন্নয়ন কর্মসূচি বৃদ্ধির কথা জানান। গতকাল এডিবির এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, সাক্ষাতকালে এডিবির কান্ট্রি ডিরেক্টর মি. প্রকাশ প্রধানমন্ত্রীর কাছে ২০২০-২০২২ সালের জন্য এডিবির নতুন কান্ট্রি অপারেশন্স বিজনেস প্ল্যান (সিওবিপি) হস্তান্তর করেন। এতে ফার্ম প্রকল্পের জন্য প্রায় পাঁচ বিলিয়ন ডলারের বিভিন্ন কর্মসূচির কথা বলা হয়েছে। এ সময় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা এডিবির সহায়তা কর্মসূচিকে স্বাগত জানান এবং অবকাঠামো ও মানব সম্পদ উন্নয়ন, বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি গবেষণা, গ্রামীণ ও কৃষি উন্নয়ন এবং বেসরকারি সেক্টরের উন্নয়নে তাঁর সরকারের অগ্রাধিকারের বিষয়গুলো তুলে ধরেন। এডিবি কান্ট্রি ডিরেক্টর বলিষ্ঠ অর্থনৈতিক কার্যক্রমের জন্য প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার প্রশংসা করে বলেন, নতুন সিওবিপি সরকারের অগ্রাধিকারের সঙ্গে সঙ্গতিপূর্ণ এবং সমৃদ্ধি অর্জনের অন্যতম পথ। এডিবির এই সহায়তা অবকাঠামো ও সামাজিক খাতে বণ্টন করা হবে। বরাদ্দের প্রায় ৫৪ শতাংশ মানব সম্পদের আরো উন্নয়ন, পল্লী সেবা, পানি সরবরাহ ও সেনিটেশন কার্যক্রম জোরদার, সড়ক, রেল ও বন্দর সংযোগ বৃদ্ধি, গ্রামীণ উন্নয়ন ত্বরান্বিত করা এবং বিদ্যুৎ সরবরাহের সামর্থ্য ও মান বৃদ্ধির কাজে ব্যবহৃত হবে। বড় প্রকল্পগুলোর মধ্যে রয়েছে ঢাকা-সিলেট সড়ক, জয়দেবপুর-এলেঙ্গা-রংপুর-বুড়িমারী-বাংলাবান্ধা সড়ক, ফরিদপুর-বরিশাল সড়ক, ঢাকা-চট্টগ্রাম রেললাইনের ডুয়েলগেজকরণ, চট্টগ্রাম-কক্সবাজার রেল লাইন, ঢাকা এমআরটি লাইন ৫ (গাবতলী-পান্থপথ-আফতাবনগর), কর্মসংস্থান প্রকল্পের জন্য দক্ষতা, কম্পিউটার এন্ড সফটওয়্যার ইঞ্জিনিয়ারিং টার্শিয়ারী এডুকেশন প্রকল্প, ঢাকা সুয়ারেজ সিস্টেম এন্ড ওয়াটার সাপ্লাই প্রকল্প এবং খুলনা সুয়ারেজ সিস্টেম ডেভেলপমেন্ট প্রকল্প। সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, স্ট্যানবাই অবস্থায় পাইপলাইনে রয়েছে আরো ৪.৯ বিলিয়ন ডলারের কতিপয় পকল্প সহায়তার অর্থ।

কুষ্টিয়ায় শেখ রেহানা’র ৬২তম জন্ম উৎসবে আতাউর রহমান আতা

দেশের উন্নয়নে সকলকে ঐক্যবদ্ধ হয়ে কাজ করতে হবে

সুজন কর্মকার ॥ কুষ্টিয়ায় জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান এঁর কনিষ্ঠ কন্যা শেখ রেহানা’র ৬২ তম জন্মদিন পালন করা হয়েছে। জাতীয় মহিলা সংস্থা কুষ্টিয়া জেলা শাখার আয়োজনে ১৩ সেপ্টেম্বর শুক্রবার সকালে কলকাকলি মাধ্যমিক বিদ্যালয় প্রাঙ্গনে শেখ রেহানা’র ৬২ তম জন্মদিন পালন করা হয়। এতে প্রধান অতিথি থেকে কেক কাটেন কুষ্টিয়া সদর উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান ও কুষ্টিয়া শহর আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক আতাউর রহমান আতা। প্রধান অতিথির বক্তব্যে আতাউর রহমান আতা দেশের উন্নয়নে সকলকে ঐক্যবদ্ধ হয়ে কাজ করার আহবান জানান। এতে সভাপতিত্ব করেন কুষ্টিয়া জেলা মহিলা সংস্থার চেয়ারম্যান ও কুষ্টিয়া জেলা মহিলা আওয়ামীলীগ’র সভানেত্রী জেব-উন- নিসা সবুজ। অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি ছিলেন কুষ্টিয়া শহর আওয়ামীলীগের যুগ্ম-সাধারণ সম্পাদক মীর রেজাউল ইসলাম বাবু, কুষ্টিয়া পল্লী উন্নয়ন বোর্ড এর চেয়ারম্যান সাইফুদ দৌলা তরুন প্রমুখ। অনুষ্ঠানটি উপস্থাপনা করেন মহিলা আওয়ামীলীগ নেত্রী সুলতানা করীম। এ সময় মহিলা আওয়ামীলীগের অন্যান্য নেতৃবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন।

শেখ হাসিনার অবদানে আজ ঘরে ঘরে বিদ্যুৎ – পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী

ঢাকা অফিস ॥ পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী শাহরিয়ার আলম এমপি বলেন, মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার অবদানে আজ প্রতিটি ঘরে ঘরে বিদ্যুৎ দেওয়া হয়েছে। সরকারের এ উন্নয়নে কিছু মহল এ বিষয়ে গুজব ছড়ানোর চেষ্টা করছে। এ সরকারের পাহাড় সমোহ উন্নয়ন যেন গুজবে নষ্ট না হয়। সে দিকে খেয়াল রাখার জন্য সকলের প্রতি আহবান জানান। গতকাল শুক্রবার রাজশাহীর চারঘাট-২ (আড়ানী) ৩৩/১১ কেভি (১০ এমভিএ) রামচন্দ্রপুরে বিদ্যুৎ উপকেন্দ্রের শুভ উদ্বোধনকালে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এ কথা বলেন। এ ছাড়া তিনি বলেন, ইতিমধ্যেই বাঘা ও চারঘাট এলাকার প্রতিটি ঘরে-ঘরে বিদ্যুৎ পৌঁছে দেয়া হয়েছে। আগামী দিনে জননেত্রী শেখ হাসির নেতৃত্বে সারা দেশে শতভাগ বিদ্যুতের ব্যবস্থা করা হবে। ইতোমধ্যে অধিকাংশ জেলাগুলোতে শতভাগ বিদ্যুতয়াতি করা হয়েছে। বর্তমান সরকারের আমলে দেশে ব্যাপক উন্নয়ন হচ্ছে। মানুষ আর না খেয়ে থাকে না। মানুষ সঠিকভাবে পাচ্ছে শিক্ষা, স্বাস্থ্য, যাতাযাত, বিদ্যুৎ, খাদ্য। ফলে দেশ আজ মধ্য আয়ের দেশ হিসেবে সারা বিশ্বে স্থান করে নিয়েছে। আয়োজিত উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন পল্লী বিদ্যুৎ উন্নয়ন বোর্ডের রাজশাহী জোনের তত্বাবধায়ক প্রকৌশলী এনামুল হক। বিশেষ অতিথি হিসেবে বক্তব্য রাখেন চারঘাট উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান ফকরুল ইসলাম। চারঘাট উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা নাজমুল হক, আড়ানী পৌর মেয়র মুক্তার আলী, নাটোর পল্লী বিদ্যুৎ সমিতির জেনালে ম্যানেজার নিতাই চন্দ্র সরকার, জেনালে ম্যানেজার (অঃদাঃ) মোমীনুল ইসলাম, ডিজিএম মুক্তার হোসেন, নির্বাহী প্রকৌশলী সাব্বিউল ফেরদৌস, নিমপাড়া ইউনিয়ন চেয়ারম্যান অধ্যক্ষ মনিরুল ইসলাম। (আড়ানী) ৩৩/১১ কেভি (১০ এমভিএ) উপকেন্দ্রের ইনচার্জ হাসানুজ্জামানের উপস্থাপনায় অন্যান্যের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন বাঘা পৌরসভার প্যানেল মেয়র শাহিনুর রহমান পিন্টু, বাঘা উপজেলা আ.লীগের যুগ্ম সম্পাদক সিরাজুল ইসলাম মন্টু, অধ্যক্ষ নছিম উদ্দিন, মাসুদ রানা তিলু, চারঘাট উপজেলা আ.লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক রাজিব কুমার পতুল, আড়ানী পৌর আ.লীগের সভাপতি শহীদুজ্জামান শাহীদ, সাধারণ সম্পাদক মতিউর রহমান মতি, বাঘা পৌর আ.লীগের সাধারণ সম্পাদক মামুন হোসেন, জেলা পরিষদের সদস্য নুর মোহাম্মদ তুফান, জয়জয়ন্তী সরকার মালতি, আড়ানী ইউনিয়ন চেয়ারম্যান রফিকুল ইসলাম, বাউসা ইউনিয়ন চেয়ারম্যান শফিকুর রহমান, আড়ানী ইউনিয়ন আ.লীগের যুগ্ম সম্পাদক এনামুল হক, যুবলীগ নেতা কামরুল হাসান জুয়েল, শাহিন আলম, পারভেজ আহম্মেদ, শিক্ষক আনোয়ার হোসেন লোটাস প্রমুখ।

লুটেরা ও দুর্নীতিবাজদের কেউই ছাড় পাবে না: ইনু

ঢাকা অফিস ॥ জাতীয় সমাজতান্ত্রিক দলের (জাসদ) সভাপতি এবং তথ্য মন্ত্রণালয়ের সংসদীয় স্থায়ী কমিটির সভাপতি হাসানুল হক ইনু বলেন, ব্যাংক লুটেরা, শেয়ারবাজার লুটেরা ও দুর্নীতিবাজ, এরা কেউই ছাড় পাবে না। তাদের ঠিকানা হবে জেলখানা। গতকাল শুক্রবার সকালে বঙ্গবন্ধু অ্যাভিনিউস্থ শহীদ কর্নেল তাহের মিলনায়তনে দলের কেন্দ্রীয় কার্যকরী কমিটির জরুরি সভায় তিনি এসব কথা বলেন। জাসদ সভাপতি বলেন, শেখ হাসিনার সরকার দেশের সামগ্রিক উন্নয়নের জন্য সাধ্যাতীত চেষ্টা করে যাচ্ছে। তবে যারা সরকারি টাকাকে বাপের টাকা মনে করে লুটপাট করে খাচ্ছে, প্রতিটি পয়সার হিসাব তাদের দিতে হবে। বিভিন্ন উন্নয়নের বরাদ্দের টাকা যে দুর্নীতিবাজ এবং লুটপাটকারীরা উইপোকা ও ইঁদুরের মতো কেটে কেটে খাচ্ছে, তাদেরকে বিষ দিয়ে মারতে হবে। জঙ্গি দমনে সরকারের সফলতার কথা উল্লেখ করে তিনি বলেন, যেভাবে দেশ থেকে জঙ্গিদের দমন করা হয়েছে, লুটপাটকারী এবং দুর্নীতিবাজদেরও সেভাবেই দমন করতে হবে। জঙ্গি দমনের যুদ্ধে শেখ হাসিনার সরকারের পাশেই আছে জাসদ। সুশাসন প্রতিষ্ঠার লড়াইয়েও শেখ হাসিনার পাশে থাকবে জাসদ। উন্নয়নের সুফল মানুষের মধ্যে সমানভাবে বণ্টন করতে সুশাসনের বিকল্প নেই। এসময় সুশাসনের বিষয়কে জাতীয় এজেন্ডায় পরিণত করতে এবং সুশাসনের পক্ষে সচেতন করতে জাসদের নেতাকর্মীদের রাজপথে সোচ্চার হওয়ার আহ্বান জানান তিনি। সভায় আরও বক্তব্য রাখেন- দলের সাধারণ সম্পাদক শিরীন আখতার, কার্যকরী সভাপতি অ্যাডভোকেট রবিউল আলম, অধ্যাপক ড. আনোয়ার হোসেন, ডা. এম এশাহ জিকরুল আহমেদ, অ্যাডভোকেট হাবিবুর রহমান শওকত, নুরুল আখতার, সফি উদ্দিন মোল্লা প্রমুখ। হাসানুল হক ইনুর সভাপতিত্বে গতকাল শুক্রবার সকাল ১০টায় শুরু হওয়া কেন্দ্রীয় কার্যকরী কমিটির সভা রাত পর্যন্ত চলবে বলে জানান জাসদের নেতারা। সভায় সুশাসনের জন্য প্রচারাভিযান, দলের পরবর্তী জাতীয় কাউন্সিল, জেলা-উপজেলা কাউন্সিল ও স্বাধীনতার সুবর্ণজয়ন্তী এবং জাসদের সুবর্ণজয়ন্তী উদযাপন, মুজিববর্ষ পালনসহ দলের ভবিষ্যত রাজনৈতিক পরিকল্পনা ও কর্মসূচির ওপর আলোচনার মাধ্যমে সিদ্ধান্ত নেওয়া হবে বলেও জানা যায়।

দেশের ৯২ শতাংশ মানুষ বিদ্যুৎ সুবিধা পাচ্ছে ঃ স্পিকার

ঢাকা অফিস ॥ দেশের ৯২ শতাংশ মানুষ বিদ্যুৎ সুবিধা পাচ্ছে বলে জানিয়েছেন জাতীয় সংসদের স্পিকার শিরীন শারমিন চৌধুরী। তিনি বলেছেন, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সময়ে দেশের দারিদ্র্যের হার ৪০ শতাংশ থেকে ২১ শতাংশে নিয়ে আসা হয়েছে। সাড়ে ৩ হাজার মেগাওয়াট বিদ্যুতের স্থলে বর্তমানে ২৪ হাজার মেগাওয়াট বিদ্যুৎ উৎপাদিত হচ্ছে। শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান, রাস্তাঘাট, মন্দির-মসজিদ সর্বক্ষেত্রেই উন্নয়ন হয়েছে। গতকাল শুক্রবার বিকাল সাড়ে ৪টায় দিনাজপুর গোড়-এ শহীদ বড় ময়দানে মুক্তিযুদ্ধের পশ্চিমাঞ্চলীয় জোনের চেয়ারম্যান, বাংলাদেশ সংবিধান প্রনয়ন কমিটিটর সদস্য ও বঙ্গবন্ধুর ঘনিষ্ঠ সহচর জননেতা এম. আবদুর রহিমের তৃতীয় মৃত্যুবার্ষিকী উপলক্ষে এক স্মরণসভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি কথাগুলো বলেন। শিরীন শারমিন চৌধুরী বলেন, আব্দুর রহিমের মতো ত্যাগী মানুষÑযিনি নিজের জীবনকে তুচ্ছ করে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের সঙ্গে থেকে স্বাধীন দেশ উপহার দিয়েছেন; সেই দেশকে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে এগিয়ে নিয়ে যেতে সবাইকে কাজ করতে হবে। এম. আবদুর রহিম সমাজকল্যাণ ও মুক্তিযুদ্ধ গবেষণা কেন্দ্রের আয়োজনে ও সংগঠনটির সভাপতি অ্যাড. আজিজুল ইসলাম জুগলুর সভাপতিত্বে সভায় অন্যের মধ্যে বক্তব্য রাখেন বাংলাদেশ প্রতিদিন পত্রিকার সম্পাদক নঈম নিজাম, একাত্তর টিভির প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা মোজাম্মেল হক বাবু, সুপ্রিম কোর্টের বিচারপতি ইনায়েতুর রহিম, জাতীয় সংসদের হুইপ ইকবালুর রহিম, জেলা প্রশাসক মাহমুদুল আলম, বিশ্বজিৎ ঘোষ কাঞ্চন প্রমুখ।

নতুন আক্রান্ত ডেঙ্গু রোগীর সংখ্যা কমেছে

ঢাকা অফিস ॥ নতুন আক্রান্ত ডেঙ্গু রোগীর সংখ্যা ১০ শতাংশ কমেছে। আর এ পর্যন্ত বিভিন্ন হাসপাতাল থেকে ছাড়পত্র প্রাপ্ত রোগীর সংখ্যা ৯৬ শতাংশ। স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের হেলথ ইমার্জেন্সি অপারেশন সেন্টার ও কন্ট্রোল রুমের তথ্য অনুযায়ী গত বৃহস্পতিবার সকাল থেকে গতকাল শুক্রবার সকাল ৮টা পর্যন্ত সারা দেশে নতুন ৬ শ’ ৭৩ জন ডেঙ্গু রোগী হাসপাতালে ভর্তি হয়েছেন। সেপ্টেম্বর মাসের শুরু থেকেই হাসপাতালগুলোতে নতুন ডেঙ্গু রোগী ভর্তির সংখ্যা লক্ষ্যণীয়ভাবে কমে এসেছে। গত ২৪ ঘণ্টায় নতুন আক্রান্ত ডেঙ্গু রোগীর সংখ্যা ১০ শতাংশ কমেছে। প্রতিবেদনের তথ্য অনুযায়ী গত জানুয়ারি থেকে গতকাল শুক্রবার পর্যন্ত ডেঙ্গু রোগের চিকিৎসা শেষে ছাড়পত্র নিয়ে চলে গেছেন ৭৬ হাজার ৯ শ’ ৩৭ জন। ছাড়পত্র প্রাপ্ত রোগীর সংখ্যা ৯৬ শতাংশ। বর্তমানে সারা দেশের হাসপাতালগুলোতে ডেঙ্গু রোগে আক্রান্ত ভর্তিকৃত রোগী আছেন ২ হাজার ৯০০ জন। এ যাবত ৬০ জনের মৃত্যু ডেঙ্গু জনিত বলে নিশ্চিত করা হয়েছে। আর দেশের সরকারি-বেসরকারি বিভিন্ন হাসপাতালের চিকিৎসক ও বাংলাদেশ মেডিকেল অ্যাসোসিয়েশন সূত্রে এ তথ্য জানা যায়, চলতি বছরের জানুয়ারি মাস থেকে এ পর্যন্ত ডেঙ্গুতে আক্রান্ত হয়ে মোট ৯ জন চিকিৎসকসহ চিকিৎসার সঙ্গে সংশ্লিষ্ট ব্যক্তি মারা গেছেন। কিন্তু সরকারের রোগতত্ত্ব, রোগ নিয়ন্ত্রণ ও গবেষণা প্রতিষ্ঠান বলছে এ সংখ্যা ৯ নয়, ৫। চিকিৎসকদের কেন্দ্রীয় সংগঠন বাংলাদেশ মেডিকেল অ্যাসোসিয়েশনের কাছে ডেঙ্গুতে আক্রান্ত হয়ে চিকিৎসকদের মৃতের সংখ্যা ৯ জন জানালেও সঠিক হিসাব নেই, আছে শুধু চারজনের নাম। বরং তারাই বলছে মৃতের সংখ্যা আরও বেশি কিন্তু তাদের কাছে সে তথ্য নেই। আর তারাও আইইডিসিআরের ডেথ রিভিউ কমিটির অপেক্ষায় আছেন জানিয়ে বিএমএর মহাসচিব ডা. এহতেশামুল হক চৌধুরী বলেন, আমাদের কাছে ৯ জনের মৃত্যুর খবর থাকলেও আমরা আইইডিসিআরের মৃত্যু নিশ্চিত করার অপেক্ষায় থাকি। তারা পাঁচজন জানিয়েছে। তবে সন্দেহ ৯ জন। এ বিষয়ে বাংলাদেশ মেডিকেল অ্যাসোসিয়েশনের কার্যালয়ে যোগাযোগ করা হলে তারা জানান, আমাদের কাছে বিভিন্ন গণমাধ্যম সূত্রে মোট চারজন ডেঙ্গুতে আক্রান্ত হয়ে মৃত্যুর খবর রয়েছে। এরা হলেন- হবিগঞ্জের সিভিল সার্জন ডা. মো. শাহাদাত হোসেন হাজরা, ময়মনসিংহ মেডিকেল কলেজের চিকিৎসক ডা. ইউলয়াম ¤্রং, ঢাকা মেডিকেল কলেজের এফসিপিএস পার্ট-২ এর শিক্ষার্থী ডা. তানিয়া সুলতানা এবং কুয়েত মৈত্রী সরকারি হাসপাতালের রেডিওলজি অ্যান্ড ইমেজিং বিভাগের জুনিয়র কনসালট্যান্ট ডা. নিগার নাহিদ দিপু। জানা যায়, এই চারজনের জন্য শোকদিবস পালনের প্রস্তাব বিএমএ থেকে প্রস্তুত করা হচ্ছে। আবার স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের কাছে ডেঙ্গুতে চিকিৎসা সংশ্লিষ্টদের নিশ্চিত মৃত্যুর সংখ্যা পাঁচজন। স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের হেলথ ইমার্জেন্সি অপারেশন সেন্টার ও কন্ট্রোলরুমের সহকারী পরিচালক জানান, ডেঙ্গুতে এ পর্যন্ত ৬০ জনের মৃত্যু নিশ্চিত হওয়া গেছে। এর মধ্যে পাঁচজন চিকিৎসাসেবায় নিয়োজিত মানুষ ডেঙ্গুতে আক্রান্ত হয়ে মৃত্যুবরণ করেছে। এখানে তিনজন এমবিবিএস পাস করা চিকিৎসক, একজন স্বাস্থ্য সহকারী, একজন এমবিবিএস পঞ্চমবর্ষের শিক্ষার্থী। জানতে চাইলে তিনি বলেন, হবিগঞ্জের সিভিল সার্জন ডা. মো. শাহাদাত হোসেন হাজরার মৃত্যু ডেঙ্গুতে হয়েছে কিনা তা এখনও নিশ্চিত নয়। এদিকে নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক রাজধানীর পপুলার হাসপাতালের এক চিকিৎসক বলেন, আমাদের এক সহকর্মী চিকিৎসক প্রথমে জ¦রে আক্রান্ত হন। তিনি শুধু প্যারাসিটামল খেয়ে ডিউটিতে ছিলেন। কারণ তখন ঢাকায় ডেঙ্গু রোগীদের ব্যাপক চাপ ছিল হাসপাতালে। ঈদের ছুটি পর্যন্ত বাতিল করে আমাদের ডিউটি করতে হয়েছে। পরে তার অবস্থা খারাপ হয়ে যাওয়ায় দেশের বেসরকারি উন্নতমানের হাসপাতালে নেওয়া হলে তিনি মারা যান। এ ক্ষেত্রে তিনি যদি শুরুতে চিকিৎসার অন্তর্ভুক্ত থাকতেন তাহলে প্রাণ হারাতে হতো না হয়তো। এ বিষয়ে বিএমএ’র সাবেক সভাপতি অধ্যাপক ডা. রশিদ ই মাহবুব বলেন, ডেঙ্গুর প্রকোপ যখন বেশি ছিল তখন ডাক্তাররা নিজের দিকে নজর না দিয়ে কাজ করে গেছেন। ছুটি বাদ দিয়ে সারাক্ষণ হাসপাতালে সেবা দিয়েছেন। তাদের মশা কামড়াতে পারে তা স্বাভাবিক। নার্সরা রয়েছেন আরও বিপাকে। তারা যে বিষয়টা সম্পর্কে জানে না বা সচেতন না তা নয়। তারাই ভালো জানে। যেহেতু দ্রুত চিকিৎসা নিলে ডেঙ্গুর ভয়াবহতা থেকে মুক্তি পাওয়া যায়, অর্থাৎ তারা দায়িত্ব পালনের চাপে তা করতে গড়িমসি করেছেন। বিষয়টা দুঃখজনক। সমাধান হিসেবে তিনি আরও বলেন, তাই এ ক্ষেত্রে চিকিৎসকদের পেশাজীবী সংগঠনদের বিষয়টা নজরে রাখা দরকার। তার চেয়ে বেশি দায়িত্ব সরকারে। কারণ চিকিৎসক তারই। তাই নিয়ম করা উচিত যে এমন সময় তারা যেন কড়া সেবার আওতায় থাকে। এজন্য অল্টারনেটিভ ব্যবস্থা রাখা জরুরি। আর এ কাজটা সরকারের করতে হবে। সংগঠনগুলো কার্যক্রমটাকে উল্লেখ করে দিতে পারে। তাছাড়া সরকারের রোগতত্ত্ব, রোগ নিয়ন্ত্রণ ও গবেষণা ইনস্টিটিউটের (আইইডিসিআর) কাছে ডেঙ্গু সন্দেহে ২০৩টি মৃত রোগীর তথ্য এসেছে। এ সন্দেহের সংখ্যা গত বৃহস্পতিবার পর্যন্ত ১৯৭ ছিল। এরমধ্যে ১০১টি মৃত্যু পর্যালোচনা করে ৬০টি ডেঙ্গুজনিত মৃত্যু নিশ্চিত করেছে প্রতিষ্ঠানটি। তবে প্রতিদিনই মৃতের সংখ্যা বাড়ছে বলে জানা যাচ্ছে দেশের বিভিন্ন স্থান থেকে। এ সংখ্যা এখনও সরকারি তালিকায় অন্তর্ভুক্ত হয়নি। হাসপাতলে ভর্তি হয়ে মৃত ৬০ জন ডেঙ্গু রোগীর মধ্যে এপ্রিলে ২, জুনে ৫, জুলাইয়ে ২৮ এবং আগস্ট মাসে ২৫ জন রয়েছেন। তাছাড়া এবারের ডেঙ্গুতে শিশুমৃত্যুর হারও সর্বোচ্চ বলে জানা যায় আইইডিসিআর সূত্রে। সরকারের এই গবেষণা প্রতিষ্ঠানটির মতে, ডেঙ্গু রোগে আক্রান্ত মৃত্যুর ৩৮ দশমিক ৫ শতাংশের বয়সই ১৮ বছরের নিচে। যাদের মধ্যে ১২ জনের বয়স ৫ থেকে ১৫ বছরের মধ্যে। যা মোট মৃত্যুর ২৩ দশমিক ১ শতাংশ। ডেঙ্গুতে নিশ্চিত মৃত ৬০ জনের তথ্য বিশ্লেষণ করে আইইডিসিআরের বিশেষজ্ঞরা জানান, ৬০ জনের মধ্যে ৪০ জনের ডেঙ্গু শক সিন্ড্রোম এবং ৭ জনের হেমোরেজিক জ¦র ছিল। ২৩ জনের মধ্যে এর আগে ডেঙ্গু আক্রান্ত হওয়ার প্রমাণ পাওয়া গেছে। এ ছাড়া মৃতদের মধ্যে ২১ জনের বয়সই ১৮ বছরের নিচে।

সরবরাহ বাড়লেও কমছে না ইলিশের দাম

ঢাকা অফিস ॥ ভরা মৌসুমে পদ্মা-মেঘনায় ধরা পড়ছে ঝাঁকে ঝাঁকে ইলিশ, প্রতিনিয়তই বাড়ছে সরবরাহ। এ মৌসুমে শুরু থেকেই বাজারে ছোট ইলিশের চেয়ে বড় ইলিশ ছিল চোখে পড়ার মতো। মৎস্য অধিদফতর বলছে, গত বছরের তুলনায় এবার বড় ইলিশের সরবরাহ বেড়েছে ২০ শতাংশ বেশি। ভরা মৌসুমে ইলিশের কমতি নেই রাজধানীর বাজারগুলোতেও। তবে, পর্যাপ্ত সরবরাহ থাকলেও দাম এখনও সব ক্রেতার নাগালে আসেনি। বাড়তি দাম সব ধরনের বড় ইলিশে। সাশ্রয়ী না হওয়ায় এর স্বাদ নিতে পারছেন না অনেকেই। তবে, সপ্তাহের ব্যবধানে দাম কিছুটা নিম্নমুখী ছোট ইলিশের বাজারে। গতকাল শুক্রবার রাজধানীর কারওয়ান বাজার ঘুরে এ চিত্র দেখা গেছে। কারওয়ান বাজারে আড়াই থেকে তিন কেজি ওজনের ইলিশ প্রতিকেজি বিক্রি হচ্ছে ২৮০০ থেকে ৩০০০ টাকায়। এগুলো গত সপ্তাহে ২৬০০ থেকে ২৮০০ টাকার মধ্যে বিক্রি হয়েছে বলে জানান ব্যবসায়ীরা। একইভাবে, কেজিতে ২০০ টাকা পর্যন্ত বেড়েছে দুই থেকে দুই কেজি ২০০ গ্রাম ওজনের ইলিশের দাম। এসব ইলিশ প্রতিকেজি বিক্রি হচ্ছে ১৬০০ থেকে ১৮০০ টাকা কেজি দরে। দেড় থেকে এক কেজি ৮০০ গ্রাম ওজনের ইলিশের কেজি ১৪০০ থেকে ১৫০০ টাকা। এক কেজি থেকে এক কেজি ১০০ গ্রাম ওজনের ইলিশের কেজি ১১০০ থেকে ১২০০ টাকা কেজি। এ বাজারে ৮০০ গ্রাম ওজনের ইলিশ বিক্রি হচ্ছে ৮০০ টাকা কেজি দরে, ৭০০ গ্রাম ওজনের ইলিশ ৬৫০ থেকে ৭০০ টাকা কেজি। ৬০০ গ্রামের প্রতি হালি ইলিশ বিক্রি করতে দেখা গেছে ১২০০ থেকে ১৩০০ টাকায়। প্রতি তিন পিসে কেজি এমন ইলিশ প্রতিকেজি সাড়ে ৪০০ টাকা, চার পিসে কেজি এমন ইলিশের কেজি ৩০০ থেকে ৩৫০ টাকায় বিক্রি করতে দেখা গেছে। মনিরুল ইসলাম নামে এক ক্রেতা বলেন, বাজারে শুধু ছোট ইলিশের দাম কমেছে, বড় মাছে এখনও বাড়তি। দাম সবার সাধ্যের মধ্যে নেই। ইলিশের ভরা মৌসুমে দাম আরও কম হওয়া উচিত। কারওয়ান বাজারের ব্রাদার্স মৎস্য ভা-ারের ইলিশ বিক্রেতা কেএম ওলিউল্লাহ বলেন, চাহিদার তুলনায় সরবরাহ কমায় বড় ইলিশের দাম বেড়েছে। তবে, ছোট ইলিশের চাহিদা কমেছে। অনেকেরই ছোট ইলিশ এক দিনে বিক্রি হয় না, পরের দিন বিক্রি করতে হয়, তখন কম দামেই ছেড়ে দেয়। বড় ইলিশের সরবরাহ বাড়লে দাম কমে যাবে বলে জানান তিনি। ছোট ইলিশের মতো নিম্নমুখী দাম অন্য মাছেরও। পাইকারি এ বাজারে চাপিলা প্রতি পাল্লা (৫ কেজি) ৭০০ থেকে ৮৫০ টাকা, কাঁচকি প্রতি পাল্লা ৯০০ থেকে ১০০০ টাকায় বিক্রি হতে দেখা গেছে। প্রতিকেজি রুপচাঁদা ৭০০ থেকে ৮৬০ টাকা, আকার ভেদে রুই মাছ বিক্রি হচ্ছে ১৫০ থেকে ৩০০ টাকা, মিরকা ১৬০ থেকে ২৫০ টাকা, বাইলা মাছ ২৫০ থেকে ৩০০ টাকা কেজি, চিংড়ি (হরিনা) ৩৫০ থেকে ৪২০ টাকা, গলদা ৪০০ থেকে ৬০০ টাকা, বাগদা ৩০০ থেকে ৪০০ টাকা কেজি। প্রতিকেজি তেলাপিয়া ১০০ থেকে ১৩০ টাকা, টাকি ১০০ থেকে ১৮০ টাকা, পাঙাশ ১০০ থেকে ১২০ টাকা, শিং মাছ ২০০ থেকে ৩৫০ টাকা কেজি দরে বিক্রি হচ্ছে।

এমবিবিএস ভর্তি পরীক্ষা পিছিয়ে ১১ অক্টোবর

ঢাকা অফিস ॥ স্বাস্থ্য অধিদফতরের অধীন এমবিবিএস প্রথম বর্ষের ভর্তি পরীক্ষার তারিখ পেছানো হয়েছে। ৪ অক্টোবরের বদলে আগামি ১১ অক্টোবর এ পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হবে। গত বৃহস্পতিবার স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ মন্ত্রণালয়ে এক বৈঠকে সর্বসম্মতিক্রমে ৪ অক্টোবরের পরীক্ষা পিছিয়ে দেওয়ার সিদ্ধান্ত হয়। কোনও ধরনের জটিলতা না থাকলে ১১ অক্টোবর পরীক্ষা গ্রহণের সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়। স্বাস্থ্য সেবা বিভাগ সূত্রে এ তথ্য জানা গেছে। সূত্র জানায়, ৪ অক্টোবরের আগে-পরে সনাতন ধর্মাবলম্বীদের সবচেয়ে বড় উৎসব দুর্গা পূজা। সে কারণে পরীক্ষা পিছিয়ে দেওয়ার সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়। এদিকে গত ২৭ আগস্ট থেকে অনলাইনে ভর্তি পরীক্ষার আবেদনপত্র গ্রহণ শুরু হয়েছে। শিক্ষার্থীরা আগামি ১৭ সেপ্টেম্বর পর্যন্ত আবেন করতে পারবেন।