নিজেরা ‘অবৈধ’ বলে অন্যদের ‘অবৈধ’ বলে – মোশাররফ

ঢাকা অফিস ॥ জিয়াউর রহমানকে ‘অবৈধ রাষ্ট্রপতি’ বলার প্রতিবাদ জানিয়েছেন বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য খন্দকার মোশাররফ হোসেন। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার বক্তব্যের জবাবে এই বিএনপি নেতা বলেছেন, বর্তমানে ক্ষমতাসীনরা নিজেদের ‘ভোট ডাকাতি’ ঢাকতে অন্যের উপর দোষারোপ করছে। আদালতের রায় তুলে ধরে শেখ হাসিনা রোববার সংসদে বলেছিলেন, অবৈধভাবে ক্ষমতা দখলকারী জিয়াউর রহমান ও এইচএম এরশাদকে বৈধ রাষ্ট্রপতি বলা যায় না। সোমবার নয়া পল্টনে জাতীয়তাবাদী মহিলা দলের প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী শোভাযাত্রা অনুষ্ঠানের আগে সমাবেশে তার জবাব দেন খন্দকার মোশাররফ। তিনি বলেন, “তাদের কথায় শহীদ প্রেসিডেন্ট জিয়াউর রহমান না কি অবৈধ। ১৯৭৮ সালের জুন মাসে সাধারণ নির্বাচনের মাধ্যমে এদেশের জনগণ ভোট দিয়ে জিয়াউর রহমানকে প্রেসিডেন্ট নির্বাচিত করেছিল। এই আওয়ামী লীগের মতো রাতে ভোট ডাকাতি করে নয়। “জিয়াউর রহমান বৈধ প্রেসিডেন্ট ছিলেন। আর যারা এই কথা (জিয়াউর রহমান বৈধ প্রেসিডেন্ট নন) বলে, তারা আগের রাতে ভোট ডাকাতি করে সরকারে রয়েছে।” শেখ হাসিনার ওই বক্তব্য ‘মনের দুর্বলতা’ থেকে বলে মন্তব্য করেন বিএনপির এই নেতা। “তিনি (শেখ হাসিনা) অবৈধ বলে যা বলেন, সেটা তার মনে দুর্বলতা রয়েছে বলে বলেন। এই কারণে যে, এই সরকার অনির্বাচিত। যেহেতু তারা অবৈধ, সেজন্য এখন অন্যদের উপর দোষ চাপিয়ে তা ধামাচাপা দিতে চায়।” আওয়ামী লীগের শাসনামলের সমালোচনা করে খন্দকার মোশাররফ বলেন, “দেশ-জাতি আজ এই অবৈধ সরকারের যাঁতাকলে নিষ্পেষিত। অর্থনীতি আজকে ধ্বংসপ্রাপ্ত, ব্যাংকগুলো লুট হয়ে গেছে। দুর্নীতি কোথায় গেছে, এটা বলার অপেক্ষা রাখে না।” এই অবস্থা থেকে মুক্তি পেতে খালেদা জিয়াকে মুক্ত করে গণতন্ত্র প্রতিষ্ঠার আন্দোলনে সবাইকে এক হওয়ার আহ্বান জানান তিনি। সমাবেশে বিএনপির জ্যেষ্ঠ যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী বলেন, “আওয়ামী লীগ বিলুপ্ত হয়ে বাকশাল হয়েছিল, সেই বাকশাল থেকে আওয়ামী লীগের জন্ম হয়েছিল যখন, তখন একটি আইন হয়েছিল পলিটিক্যাল পার্টি রেগুলেশন। সেখানে আওয়ামী লীগের একজন নেতা দরখাস্ত করে আবার বাকশাল থেকে আওয়ামী লীগে ফিরে এসেছিলেন। “এটা তো জিয়াউর রহমানের সময়ে। জিয়াউর রহমান রাষ্ট্রপতি, তার আইন। তার আইনে আওয়ামী লীগের পুনরুজ্জীবন ঘটেছিল। আওয়ামী লীগকে নতুন জন্ম দিয়েছিলেন জিয়াউর রহমান। তিনি যদি অবৈধ হন, তাহলে আজকে আওয়ামী লীগও অবৈধ, প্রধানমন্ত্রীও অবৈধ।” মহিলা দলের সভাপতি আফরোজা আব্বাসের সভাপতিত্বে সমাবেশের পর নয়া পল্টনের কেন্দ্রীয় কার্যালয় থেকে শোভাযাত্রা শুরু হয়। কাকরাইল মোড়ে ঘুরে কার্যালয়ের সামনে ফিরে তা শেষ হয়।

বিকালে শোভাযাত্রা করার আগে সকালে মহিলা দলের নেতারা বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীরকে নিয়ে শেরে বাংলানগরে বিএনপির প্রতিষ্ঠাতা জিয়াউর রহমানের কবরে ফুল দেন।

আলমডাঙ্গায় ভ্রাম্যমান আলদত পরিচলনা করে দুব্যবসায়ীকে ১৩হাজার টাকা জরিমানা

আলমডাঙ্গা অফিস ॥ আলমডাঙ্গায় ভ্রাম্যমান আলদত পরিচলনা করে দুব্যবসায়ীকে ১৩হাজার টাকা জরিমানা করেছে। গতকাল দুপুরে উপজেলা সহকারী কমিশনার (ভূমি), নির্বাহী ম্যাজিষ্ট্রেড সীমা শারমিন আদালত পরিচালনা করেন। জানাগেছে, আলমডাঙ্গা আনন্দধাম এলাকায়  কালিদাসপুর গ্রামের মৃত রহিম আলীর ছেলে ব্যবসায়ী আবদার আলীকে  পণ্যে পাটজাত মোড়ক ব্যবহার আইনে ১০ হাজার ও লাল ব্রিজ এলাকায়  পোলতাডাঙ্গা গ্রামের হাজী আ: হামিদের ছেলে সুজন আলীকে একই অপরাধে ৩ হাজার টাকা জরিমানা করেন। এসময় পাট অধিদপ্তরের জেলা মূখ্য পরিদর্শক সৈয়দ আলা উদ্দিন ও আলমডাঙ্গা থানার এসআই মোস্তফাসহ সঙ্গীয় ফোর্স উপস্থিত ছিলেন।

খোকসায় বঙ্গবন্ধু গোল্ডকাপ ফুটবল টুনামেন্ট (অনুর্ধ্ব-১৭) ফাইনাল খেলা অনুষ্ঠিত

খোকসা প্রতিনিধি ॥ কুষ্টিয়ার খোকসায় উপজেলা প্রশাসনের আয়োজনে জাতীর জনক  বঙ্গবন্ধ ুশেখ মজিবুর রহমান  জাতীয় গোল্ডকাপ ফুটবল টুনামেন্ট (অনুর্ধ্ব-১৭)-২০১৯ জমকালো পরিবেশে ফাইনাল খেলা অনুষ্ঠিত হয়। সোমবার বিকেলে খোকসা জানিপুর সরকারী মাধ্যমিক স্কুল মাঠে জাতীর জনক  বঙ্গবন্ধ ুশেখ মজিবুর রহমান জাতীয় গোল্ডকাপ ফুটবল টুনামেন্ট (অনুর্ধ্ব-১৭) টুনামেন্ট-২০১৯ ফাইনাল খেলায় সভাপতিত্ব করেন উপজেলা নির্বাহী অফিসার মোহাম্মদ সাঈদ মোমেন মজুমদার। আনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি হিসাবে উপস্থিত ছিলেন খোকসা পৌর মেয়র ও উপজেলা আওয়ামীলীগের সাধারন সম্পাদক প্রভাষক তারিকুর ইসলাম তারিক,উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান সেলিম রেজা, থানা অফিসার ইনচার্জ এবিএম মেহেদী মাসুদ। এছাড়াও উপস্থিত ছিলেন উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা অফিসার নাজমুল হক, খোকসা-জানিপুর সরকারী  মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক মুহম্মদ আলী, উপজেলা আওয়ামীলীগের সিনিয়র সহ-সভাপতি আরিফুল আলম তশর, জয়ন্তীহাজরা ইউপি চেয়ারম্যান আব্দুর রাজ্জাক, খোকসা ইউপি চেয়ারম্যান আইযুব আলী, শোমসপুর মাধ্যমিক বালিকা বিদ্যালয় এর প্রধান শিক্ষক শফিকুজ্জামান বিল্লু, বনগ্রাম মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক শফিকুল ইসলাম, খোকসা প্রেসক্লাবের সাধারন সম্পাদক শেখ সাইদুল ইসলাম প্রবীন  প্রমখ। এ ছাড়াও উপজেলা বিভিন্ন দপ্তরের কর্মকর্তাা, জনপ্রতিনিধি, শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের প্রধান, সুধী, সাংবাদিকগন উপস্থিত ছিলেন । এ বছর উপজেলার ৯ টি ইউনিয়ন ও ১ টি পৌরসভাসহ মোট ১০ টি দল খেলায় অংশ গ্রহন করে। খেলায় ১-০ গোলে জয়ন্তীহাজরা ইউনিয়ন পরিষদ খোকসা ইউনিয়ন পরিষদ কে পরাজিত করে ২য় বাবের মত চাম্পিয়ন হওয়ার গৌরব অর্জন করেন।

 

খোকসায় নবাগত উপজেলা নির্বাহী অফিসার মোহাম্মদ সাঈদ মোমেন মজুমদার এর মতবিনিয় সভা অনুষ্ঠিত

খোকসা প্রতিনিধি ॥ কুষ্টিয়ার খোকসায় নবাগত উপজেলা নির্বাহী অফিসার মোহাম্মদ সাঈদ মোমেন মজুমদার এর  উপজেলার বিভিন্ন দপ্তরের কর্মকর্তা, জনপ্রতিনিধি, শিক্ষক, সুধী ও সাংবাদিক দের সাথে মতবিনিয় সভা করেছেন। সোমবার দুপুরে উপজেলা পরিষদ হল রুমে মত বিনিময় সভায় সভাপিতত্ব করেন উপজেলা নির্বাহী অফিসার মোহাম্মদ সাঈদ মোমেন মজুমদার। উপস্থিত ছিলেন সহকারী কমিশনার (ভুমি) সাদিয়া জেরিন , ,খোকসা উপজেলা আওয়ামীলীগের সভাপতি বাবুল আখতার, উপজেলা আওয়ামীলীগের সাধারন সম্পাদক ও পৌর মেয়র প্রভাষক তারিকুর ইসলাম তারিক, উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান সেলিম রেজা, থানা অফিসার ইনচার্জ এ বি এম মেহেদী মাসুদ। এছাড়াও উপস্থিত ছিলেন উপজেলা  স্বাস্থ্য ও প,প, কামরুজ্জামান সোহেল, উপজেলা  কর্মকর্তা উপজেলা কৃষি অফিসার সবুজ কুমার সাহা, উপজেলা মৎস্য অফিসার রাসেদ হাসান, উপজেলা আওয়ামীলীগের সিনিয়র সহ-সভাপতি আরিফুল আলম তশর,উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা অফিসার নাজমুল হক, খোকসা-জানিপুর সরকারী  মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক মুহম্মদ আলী, উপজেলা আওয়ামীলীগের সিনিয়র সহ-সভাপতি আরিফুল আলম তশর, শোমসপুর ইউপি চেয়ারম্যান বদর উদ্দিন খান, জানিপুর ইউপি চেয়াম্যান হরিবুর রহমান হবি, জয়ন্তীহাজরা ইউপি চেয়ারম্যান আব্দুর রাজ্জাক, খোকসা ইউপি চেয়ারম্যান আইযুব আলী, শোমসপুর মাধ্যমিক বালিকা বিদ্যালয় এর প্রধান শিক্ষক শফিকুজ্জামান বিল্লু,উপজেলা প্রাথমিক শিক্ষক  সমিতির সভাপতি আবু হানিফ, খোকসা প্রেসক্লাবের সাধারন সম্পাদক শেখ সাইদুল ইসলাম প্রবীন  প্রমখ। এ ছাড়াও উপজেলা বিভিন্ন দপ্তরের কর্মকর্তাা, জনপ্রতিনিধি, শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের প্রধান, সুধী, সাংবাদিকগন উপস্থিত ছিলেন।

কালীগঞ্জে চিরকুট লিখে ৩ সন্তানের জননীর আত্মহত্যা

ঝিনাইদহ প্রতিনিধি ॥ ঝিনাইদহের কালীগঞ্জে চিরকুট লিখে তিন সন্তানের জননী নীলা খাতুন (২৬) নামে এক গৃহবধু আত্মহত্যা করেছে। রোববার রাত সাড়ে ৯ টার দিকে উপজেলার চাপালী কুঠিপাড়ার ভাড়া বাড়িতে গৃহবধু আত্মহত্যা করে। নিহত গৃহবধু নীলা খাতুন উপজেলার চেউনিয়া গ্রামের শামিরুল ইসলামের স্ত্রী। নিহতের স্বামী শহরের একটি হোটেলে কাজ করে। তাদের নিলয়-নিরব নামের দেড় বছরের যমজ দুটি ছেলে ও ৬ বছরের শামীমা নামের একটি মেয়ে আছে। নিহত গৃহবধুর দুলাভাই নয়ন হোসেন জানান, রাতে খবর পেয়ে চাপালী এসে দেখি নীলা গলায় ফাঁস দিয়ে আত্মহত্যা করেছে। আসার পর নীলার মেয়ে শামীমা আমাকে দুটি কাগজ ধরিয়ে দেয়। শামীমা আমাকে জানায়, দুপুরের দিকে মা এই কাগজে লিখেছে। নীলা আত্মহত্যা করার সময় পাশের ঘরেই তার স্বামী শুয়ে ছিল। তবে কি কারণে সে আত্মহত্যা করেছে তিনি কিছু জানেন না। চিরকুটে লেখা আছে, আমার মৃত্যুর জন্য কেউ দায়ী নয়। আমি নিজের ইচ্ছায় গলায় দড়ি দিলাম। কেউ আমার স্বামীকে দোষ দিও না। মা তোমরা কেউ বাদী হয়ও না। এটা আমার অনুরোধ রইল। নীলা। কালীগঞ্জ থানার ওসি মোঃ ইউনুচ আলী জানান, গৃহবধু নীলা আত্মহত্যা করেছে। পুলিশ লাশ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য ঝিনাইদহ সদর হাসপাতালে পাঠিয়েছে

মিরপুরে বঙ্গবন্ধু জাতীয় গোল্ডকাপ ফুটবল টুর্ণামেন্টের দু’টি খেলা অনুষ্ঠিত

আমলা অফিস ॥ কুষ্টিয়ার মিরপুরে জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান জাতীয় গোল্ডকাপ ফুটবল টুর্ণামেন্ট অনুর্ধ্ব-১৭ এর দু’টি খেলা অনুষ্ঠিত হয়েছে। উপজেলা প্রশাসনের উদ্যোগে ও উপজেলা ক্রীড়া সংস্থার পরিচালনায় গতকাল সোমবার বিকেলে স্থানীয় ফুটবল মাঠে এ খেলা দু’টি অনুষ্ঠিত হয়। টুর্নামেন্টের প্রথম  খেলায় আমবাড়ীয়া ইউনিয়ন পরিষদ ১-০ গোলের  ব্যাবধানে ফুলবাড়ীয়া ইউনিয়ন পরিষদকে পরাজিত করেন। আমবাড়ীয়া ইউনিয়ন পরিষদের পক্ষে একমাত্র গোলদানা তামীম ইকবল ম্যাচ সেরা খেলোয়াড় নির্বাচিত হন। খেলাটি পরিচালনা করেন মিরপুর ক্রীড়া সংস্থার নির্বাহী সদস্য মোহাম্মদ রফিক। তাকে সহযোগিতা করেন মিরপুর সরকারী বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ের ক্রীড়া শিক্ষক শফিউল ইসলাম শফি ও মিরপুর নি¤œ মাধ্যমিক বিদ্যানিকেতনের ক্রীড়া শিক্ষক জাহাঙ্গীর মাসুদ। আজ মঙ্গলবার টুর্ণামেন্টের দ্বিতীয় রাউন্ডের দু’টি খেলা অনুষ্ঠিত হবে। প্রথম খেলা বিকেল ৩টায় পোড়াদহ ইউনিয়ন পরিষদ বনাম বারুইপাড়া ইউনিয়ন পরিষদ। অপর খেলা বিকেল সাড়ে ৪টায় চিথলিয়া ইউনিয়ন পরিষদ বনাম মালিহাদ ইউনিয়ন পরিষদ।

কালুখালীতে ৪৮তম গ্রীষ্মকালীন ক্রীড়া প্রতিযোগীতার পুরস্কার বিতরণ

ফজলুল হক ॥ গতকাল সোমবার রাজবাড়ী জেলাধীন কালুখালীতে ৪৮ তম গ্রীষ্মকালীন ক্রীড়া প্রতিযোগীতা ২০১৯ এর পুরস্কার বিতরণ অনুষ্ঠিত হয়েছে। বাংলাদেশ জাতীয় স্কুল, মাদরাসা ও কারিগরি শিক্ষা ক্রীড়া সমিতি কালুখালী এর আয়োজনে বিকাল ৩ টায় রতনদিয়া রজনীকান্ত সরকারী মডেল উচ্চ বিদ্যালয় মাঠ প্রাঙ্গণে উপজেলা পর্যায়ে ফাইনাল খেলায় ট্রাইবেকারে ১-০ গোলে বিকয়া উচ্চ বিদ্যালয় আলহাজ্ব আমেনা খাতুন বিদ্যাপীঠকে হারিয়ে চ্যম্পিয়নশীপ অর্জন করে। খেলা শেষে পুরস্কার বিতরণী অনুষ্ঠানে উপজেলা নির্বাহী অফিসার কামরুন নাহার এর সভাপতিত্বে অন্যান্যের মধ্যে উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা অফিসার আব্দুলক্ষাহ আল মাহমুদ, থানা অফিসার ইনচার্জ মোঃ সহিদুল ইসলাম, সহকারী মাধ্যমিক শিক্ষা অফিসার জয়ন্ত কুমার দাস, একাডেমিক সুপারভাইজার ইমতিয়াজ দেওয়ান মুরাদ, জেলা পরিষদ সদস্য খায়রুল ইসলাম খায়ের, রতনদিয়া ইউপি চেয়ারম্যান মেহেদী হাচিনা পারভীন নিলুফা, প্রধান শিক্ষক মোঃ আয়ুব আলী, সহকারী প্রধান শিক্ষক মোঃ হাফিজুর রহমান ও উপজেলা ক্রীড়া সংস্থার কোষাধ্যক্ষ লিয়াকত আলী খান সহ অন্যান্য ক্রীড়া শিক্ষকমন্ডলী উপস্থিত ছিলেন। গত ৭ তারিখ থেকে ৯ তারিখ পর্যন্ত ফাইনাল খেলায় বিজয়ীদের মাঝে অতিথিবৃন্দ প্রথমে ফুটবল প্রতিযোগীতায় চ্যম্পিয়নশীপ দল বিকয়া উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক মোঃ আকবর আলী, ক্রীড়া শিক্ষক আব্দুল কাদের ও ক্যপ্টেন সুজয় কুমারের হাতে চ্যাম্পিয়ন ট্রফি তুলে দেন। এছাড়াও অন্যান্য খেলায় বিজয়ীদের হাতে পুরস্কার তুলে দেন।

ঝিনাইদহে অবসরপ্রাপ্ত বিজিবি সদস্যকে শ্বাসরোধ করে হত্যা

ঝিনাইদহ প্রতিনিধি ॥ ঝিনাইদহে নুরুজ্জামান (৬০) নামের অবসরপ্রাপ্ত এক বিজিবি সদস্যকে শ্বাসরোধ করে হত্যা করেছে দুর্বৃত্তরা। সোমবার সকালে শহরের হামদহ দাসপাড়া এলাকার নিজ বাসা থেকে তার লাশ উদ্ধার করে পুলিশ। নিহত নুরুজ্জামান ওই এলাকার মৃত আব্দুল করিম বিশ্বাসের ছেলে। ঝিনাইদহের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মিলু মিয়া বিশ্বাস জানান, রোববার রাত ১২ টার দিকে খাবার খেয়ে নুরুজ্জামান বাড়িটির ২য় তলায় ও তার ছেলে শামীম হোসেন ৩য় তলায় ঘুমাতে যায়। রাতে দুর্বত্তরা নুরুজ্জামানকে শ্বাসরোধ করে হত্যা করে। সকালে তার দেখতে পেয়ে পুলিশের খবর দেয় স্বজনরা। পরে পুলিশ তার লাশ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য ঝিনাইদহ সদর হাসপাতাল মর্গে পাঠায়। নুরুজ্জামান গত ৭ মাস আগে বিজিবি থেকে অবসর গ্রহণ করেন।

 

ইবি’র মেডিকেল সেন্টারে ডেন্টাল ইউনিটের উদ্বোধন

ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয়ের মেডিকেল সেন্টারে নবনির্মিত দ্বিতীয়তলায় গতকাল সোমবার ডেন্টাল ইউনিটের শুভ উদ্বোধন করা হয়। ডেন্টাল ইউনিটের শুভ উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে ভাইস-চ্যান্সেলর প্রফেসর ড. মোঃ হারুন-উর-রশিদ আসকারী (ড. রাশিদ আসকারী) বলেন, মেডিকেল সেন্টারের অবকাঠামোগত উন্নয়নের পাশাপাশি বিভিন্ন ক্ষেত্রে চিকিৎসা সেবার মান উন্নয়নের জন্য বর্তমান প্রশাসন নিরলসভাবে কাজ করে যাচ্ছে। তারই এক নতুন সংযোজন ডেন্টাল ইউনিট, যা বিশ্ববিদ্যালয়ে দন্ত চিকিৎসায় নতুন দিগন্তের সূচনা ঘটাবে। তিনি বলেন, আমরা দাঁত হারিয়ে দাঁতের মর্যাদা বুঝতে চাই না।তিনি আরো বলেন, দন্ত চিকিৎসা পৃথিবীর বুকে একটি ব্যয়বহুল চিকিৎসা। সেখানে আজ মেডিকেল সেন্টারে ডেন্টাল ইউনিটের শুভ উদ্বোধন ফলে বিশ্ববিদ্যালয় পরিবারের জন্য  দন্ত চিকিৎসার দাড় উন্মোচিত হলো। মেডিকেল উপদেষ্টা কমিটির সভাপতি প্রো-ভাইস-চ্যান্সেলর প্রফেসর ড. মোঃ শাহিনুর রহমান তাঁর বক্তব্যে বলেন, আমরা সাধারনত দায় না পড়লে দাঁতের চিকিৎসকের শরনাপন্ন হয় না। যখন দাঁতের খারাপ অবস্থা হয়ে যায় তখন দাঁতের ডাক্তারের কাছে দৌড়ায়। তিনি বলেন, মেডিকেল সেন্টারে ডেন্টাল ইউনিটের উদ্বোধনের মধ্যে দিয়ে আজ থেকেই বিশ্ববিদ্যালয় পরিবারের প্রতিটি সদস্য দাঁতের চিকিৎসা সেবা পাবে। ট্রেজারার প্রফেসর ড. মোঃ সেলিম তোহা তাঁর বক্তব্যে বলেন, আজ এই দিনটি বিশ্ববিদ্যালয়ের জন্য একটি সুন্দরতম দিন। যেখানে আমরা পৃথিবীর চিকিৎসা শাস্ত্রে একটি ব্যয়বহুল চিকিৎসা দন্ত চিকিৎসা, যার সেবা আমাদের মেডিকেল সেন্টারে চালু হলো। এতে করে দাঁতের যেকোন প্রাথমিক সমস্যায় আমাদেরকে আর ক্যাম্পাসের বাইরে যেতে হবে না এবং বিশ্ববিদ্যালয় পরিবারের সবাই উপকৃত হবে। ডেন্টাল ইউনিটের শুভ উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে বিশ্ববিদ্যালয়ের রেজিস্ট্রার(ভারঃ) এস.এম আব্দুল লতিফ, ছাত্র-উপদেষ্টা  প্রফেসর ড. পরেশ চন্দ্র বমর্¥ণ, পরিবহন প্রশাসক প্রফেসর ড. মোঃ রেজওয়ানুল ইসলাম, দন্ত চিকিৎসক ডাঃ মাসুম আলী, ডাঃ রাকিবুল ইসলাম রাজিবসহ মেডিকেল সেন্টারের সকল স্তরের ডাক্তার, কর্মকর্তা ও কর্মচারীবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন। ডেন্টাল ইউনিটের  উদ্বোধন অনুষ্ঠানটি পরিচালনা করেন প্রধান মেডিকেল অফিসার(ভারঃ) ডাঃ এস এম নজরুল ইসলাম। সংবাদ বিজ্ঞপ্তি।

 

টিআইবি বিদেশিদের শেখানো বুলি আওড়ায় – ডেপুটি স্পিকার

ঢাকা অফিস ॥ দুর্নীতিবিরোধী গবেষণা সংস্থা ট্রান্সপারেন্সি ইন্টারন্যাশনাল বাংলাদেশ (টিআইবি) বিদেশিদের শেখানো বুলি আওড়ায় বলে অভিযোগ করেছেন সংসদের ডেপুটি স্পিকার ফজলে রাব্বী মিয়া। সংসদের আইপিডি সম্মেলন কক্ষে গতকাল সোমবার এক আলোচনা সভায় তিনি বলেন, “বিদেশিরা যেভাব বুলি শিখিয়ে দেয় তারা সেভাবে তা আওড়ায়। আমরা (সংসদ সদস্য) সেভাবে করি না।” গত ২৮ আগস্ট দশম জাতীয় সংসদের ওপর টিআইবি পরিচালিত ‘পার্লামেন্টওয়াচ’ শীর্ষক গবেষণা প্রতিবেদনে বলা হয়, দশম সংসদের প্রথম থেকে শেষ অধিবেশন (মোট ২৩টি) পর্যন্ত কোরাম সঙ্কটের কারণে মোট ১৯৪ ঘণ্টা ৩০ মিনিট অপচয় হয়েছে, যার আর্থিক মূল্য ১৬৩ কোটি ৫৭ লাখ ৫৫ হাজার ৩৬৩ কোটি টাকা। ২০১৪ সালের জানুয়ারির প্রথম থেকে ২০১৮ সালের অক্টোবর পর্যন্ত দশম জাতীয় সংসদের শেষ অধিবেশনের কার্যক্রম পর্যবেক্ষণ করে এই প্রতিবেদন তৈরি করে টিআইবি। পরে তথ্যমন্ত্রী হাছান মাহমুদ টিআইবির ওই প্রতিবেদনকে ‘উদ্দেশ্যমূলক’ বলেন। ফজলে রাব্বী বলেন, “কিছুদিন আগে টিআইবি সংসদ সম্পর্কে একটি প্রতিবেদন দিয়েছে। উনারা উনাদের মত করে কথা বলেন। উনাদের সম্পর্কে আমরা যদি বলি তাহলে তো মাথায় হাত পড়বে।” প্রস্তাবিত ‘যৌন হয়রানি প্রতিরোধ ও সুরক্ষা আইন-২০১৯’ নিয়ে আয়োজিত আলোচনা সভায় ডেপুটি স্পিকার টিআইবির কর্মকর্তাদের উদ্দেশ্য করে বলেন, “শীতাতপ নিয়ন্ত্রিত কক্ষে বসে কত টাকা বেতন নেন? আমরাও শীতাতপ নিয়ন্ত্রিত কক্ষে বসে আইন পাস করি। কারও দয়ার টাকা নিয়ে নয়। জনগণের টাকায়, তাদের রায় নিয়ে।” স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত সংসদীয় স্থায়ী কমিটির সভাপতি শামসুল হক টুকুর সভাপতিত্বে সভার আয়োজক পার্লামেন্টারিয়ান ককাস অন চাইল্ড রাইটস, জাতীয় কন্যাশিশু অ্যাডভোকেসি ফোরাম, প¬্যান ইন্টারন্যাশনাল এবং জাতীয় কন্যাশিশু অ্যাডভোকেসি ফোরাম। অনুষ্ঠানে অন্যদের মধ্যে বক্তব্য দেন সংসদ সদস্য ফরিদুল হক খান, অ্যারোমা দত্ত, আবুল কালাম মোহাম্মদ আহসানুল হক চৌধুরী, সামিল উদ্দিন আহমেদ শিমুল, কাজী কানিজ সুলতানা।

 

এরশাদকে সঙ্গে নিয়েই শেখ হাসিনা গণতন্ত্রকে ধ্বংস করেছেন – ফখরুল

ঢাকা অফিস ॥ এরশাদকে সঙ্গে নিয়েই এদেশের গণতন্ত্রকে শেখ হাসিনা ধ্বংস করেছেন বলে মন্তব্য করেছেন বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর।

গতকাল সোমবার দুপুরে জাতীয়তাবাদী মহিলা দলের প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী উপলক্ষে বিএনিপর প্রতিষ্ঠাতা জিয়াউর রহমানের সমাধিতে শ্রদ্ধা নিবেদন শেষে সাংবাদিকদের কাছে তিনি এ মন্তব্য করেন। বিএনপি মহাসচিব বলেন, হুসেইন মুহাম্মদ এরশাদ যখন একজন নির্বাচিত বিচারপতিকে সরিয়ে ক্ষমতা দখল করেছিলেন তখন শেখ হাসিনাই বাংলাদেশ ভারতের সীমান্তে বলেছিলেন শী ইজ নট আন হ্যাপি-এরশাদ আসায় তিনি অখুশী নয়। পরবর্তীতে তার কাজ দেখে আমরা বুঝতে পারি তিনি এরশাদকে সঙ্গে নিয়েই এদেশের গণতন্ত্রকে ধ্বংস করেছেন মানুষের অধিকার কেড়ে নিয়েছেন। যে কারণে আমরা বলি, এরশাদ হচ্ছে সম্পূর্ণ আওয়ামী লীগের, শেখ হাসিনার গৃহপালিত বিরোধী দল।’ বিএনপি মহাসচিব অভিযোগ করেন, ‘জন বিরোধী সরকার শুধুমাত্র রাজনৈতিক প্রতিহিংসা মূলকভাবে বেগম খালেদা জিয়াকে কারাবন্দি করে রেখেছে। তিনি অত্যন্ত অসুস্থ। তার কোনো চিকিৎসার ব্যবস্থা হচ্ছে না। আজকের এই দিনে মহিলা দলের প্রতিষ্ঠা বার্ষিকীতে আমরা তাকে গভীর শ্রদ্ধার সাথে স্মরণ করেছি। পরম করুণাময় আল্লাহ তায়ালার কাছে এই দোয়া চেয়েছি যে আল্লাহ তায়ালা যেন তাকে যেন অবিলম্বে মুক্ত করেন।’ ফখরুল বলেন, ‘দেশনেত্রী বেগম খালেদা জিয়াকে মুক্ত করা এবং গণতন্ত্রকে পুনরুদ্ধ করার শপথ আজকে মহিলা দল নিয়েছে। আমরা আশা করি সম্মিলিত আন্দোলন সংগ্রামের মধ্য দিয়ে দেশনেত্রী বেগম খালেদা জিয়াকে মুক্ত করবো এবং গণতন্ত্রকে পুণরুদ্ধার করবে।’ এ সময় জাতীয়তাবাদী মহিলা দলের কেন্দ্রীয় সভাতি আফরোজা আব্বাস, সাধারণ সম্পাদক সুলতানা আহমেদসহ সংগঠনটির বিভিন্ন পর্যায়ের নেতাকর্মীরা উপস্থিত ছিলেন।

বিমানের চতুর্থ ড্রিমলাইনার ‘রাজহংস’ আসছে বৃহস্পতিবার

ঢাকা অফিস ॥ জাতীয় পতাকাবাহী বিমান বাংলাদেশ এয়ারলাইন্সের বহরে যুক্ত হতে যাচ্ছে বিশ্বের সর্বাধুনিক প্রযুক্তি সম্বলিত সম্পূর্ণ নতুন চতুর্থ ও শেষ বোয়িং ৭৮৭ ড্রিমলাইনার ‘রাজহংস’। আগামী বৃহস্পতিবার হযরত শাহজালাল আর্ন্তজাতিক বিমানবন্দরে বিকেলে ড্রিমলাইনারটি অবতরণ করবে। এ উড়োজাহাজ যুক্ত হওয়ার মধ্য দিয়ে বিমান বহরে উড়োজাহাজের সংখ্যা দাঁড়াবে ১৬টিতে। দেশে পৌঁছানোর পর ড্রিমলাইনারকে ওয়াটার ক্যানন স্যালুটের মাধ্যমে স্বাগত জানানো হবে। উড়োজাহাজটি দেশে আনতে বিমান বাংলাদেশ এয়ারলাইন্সের একটি প্রতিনিধি দল সিয়াটলে বোয়িং কোম্পানির এভারটে ডেলিভারি ও অপারেশন্স সেন্টারে পৌঁছেছেন। বিমান বাংলাদেশ এয়ারলাইন্স ২০০৮ সালে মার্কিন উড়োজাহাজ নির্মাতা প্রতিষ্ঠান বোয়িং কোম্পানির সঙ্গে ১০টি নতুন উড়োজাহাজ ক্রয়ের জন্য চুক্তিবদ্ধ হয়। এরইমধ্যে ৪টি বোয়িং ৭৭৭-৩০০ ইআর, ২টি বোয়িং ৭৩৭-৮০০ ও ৩টি বোয়িং ৭৮৭-৮ ড্রিমলাইনার উড়োজাহাজ বিমান বহরে যুক্ত হয়েছে। চতুর্থ এবং শেষ উড়োজাহাজ ‘রাজহংস’ বৃহস্পতিবার দেশে আসছে। ‘রাজহংস’ বিমান বহরে সংযোজিত হওয়ার মধ্য দিয়ে সম্পাদিত চুক্তির আওতায় ১০টি উড়োজাহাজের সবই বিমান বুঝে পাবে। বিমান বাংলাদেশ এয়ারলাইন্সের বহরে যুক্ত হতে যাওয়া চারটি ড্রিমলাইনারের নাম পছন্দ ও বাছাই করেছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। এগুলো হলো- আকাশবীণা, হংসবলাকা, গাঙচিল ও রাজহংস। এর আগে চারটি বোয়িং ৭৭৭-৩০০ ইআর, ২টি বোয়িং ৭৩৭-৮০০ইআর এর নামও প্রধানমন্ত্রীর দেওয়া। যেগুলো হলো- পালকি, অরুণ আলো, আকাশ প্রদীপ, রাঙা প্রভাত, মেঘদূত এবং ময়ূরপঙ্খী। টানা ১৬ ঘণ্টা উড়তে সক্ষম এই ড্রিমলাইনার চালাতে অন্যান্য উড়োজাহাজের তুলনায় ২০ শতাংশ কম জ¦ালানি প্রয়োজন হবে। ‘রাজহংস’-এর আসন সংখ্যা ২৭১টি। বিজনেস ক্লাস ২৪টি, আর ২৪৭টি ইকোনমি ক্লাস। সম্প্রসারিত বহর দিয়ে বিমান তার চলমান রুটে ফ্লাইটের সংখ্যা বৃদ্ধি করতে সক্ষম হচ্ছে। সেই সঙ্গে নতুন গন্তব্য সংযোজন প্রক্রিয়া অব্যাহত রয়েছে। ১৩ মে ঢাকা-দিল্লী রুট চালু হয়েছে, ২৮ অক্টোবর মদিনা এবং নভেম্বরে গোয়াংজু নতুন রুট চালু হবে। এছাড়াও আগামীতে ম্যানচেস্টার, কলম্বো, মালে, টোকিও এবং নিউ ইয়র্ক ফ্লাইট পরিচালনার পরিকল্পনা প্রক্রিয়াধীন। বহর পরিকল্পনা একটি চলমান প্রক্রিয়া, এই ধারা অব্যাহত রাখার লক্ষ্যে বিমান কানাডা কমার্শিয়াল কোম্পানি থেকে স্বল্প পাল্লার ৩টি নতুন ড্যাশ৮- কিউ৪০০ কিনেছে, যা ২০২০ সালের মার্চ-জুন মাসের মধ্যে বহরে যুক্ত হবে।

প্রতিবছর ৪ ডিসেম্বর ‘জাতীয় বস্ত্র দিবস’

ঢাকা অফিস ॥ প্রতিবছরের ৪ ডিসেম্বরকে ‘জাতীয় বস্ত্র দিবস’ হিসেবে উদযাপনের অনুমোদন দিয়েছে মন্ত্রিসভা। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সভাপতিত্বে গতকাল সোমবার মন্ত্রিসভার বৈঠকে এই অনুমোদন দেওয়া হয়। তেজগাঁওয়ে প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ে মন্ত্রিসভার এই বৈঠক অনুষ্ঠিত হয়। বৈঠক শেষে ব্রিফিংয়ে মন্ত্রিপরিষদ সচিব মোহাম্মদ শফিউল আলম বলেন, দিবসটি উদযাপনের লক্ষ্যে মন্ত্রিপরিষদ বিভাগের জারি করা পরিপত্রের ‘খ’তে এটি অন্তর্ভুক্তকরণের প্রস্তাব অনুমোদন দেওয়া হয়েছে। উদযাপন মানে মানুষকে স্মরণ করিয়ে দেওয়া যে আজকে বস্ত্র দিবস। মন্ত্রিপরিষদ সচিব বলেন, স্বাধীনতা এবং বিজয়কে একসঙ্গে নিয়ে চলতে চাই। বস্ত্র সেক্টর আমাদের সর্বোচ্চ যোগানদাতা। সবচেয়ে বেশি রপ্তানি আয় আমরা বস্ত্র খাত থেকেই পাই। এর আগে স্বাধীনতার মাস মার্চে পাট দিবস এবং বিজয়ের মাস ডিসেম্বরে বস্ত্র দিবস পালনের প্রস্তাব করে বস্ত্র ও পাট মন্ত্রণালয়।  এছাড়া, গতকাল সোমবার মন্ত্রিসভার বৈঠকে এসএমইখাতের উদ্যোক্তাদের ঋণ এবং অন্যান্য সুবিধা সহজে একটি নীতিমালার অনুমোদন দেওয়া হয়েছে। মন্ত্রিপরিষদ সচিব মোহাম্মদ শফিউল আলম বলেন, জাতীয় শিল্পনীতির আলোকে এই নীতিমালা তৈরি করা হয়েছে। এই খাতে প্রায় ৭৮ লাখ অতিক্ষুদ্র, ক্ষুদ্র ও মাঝারি শিল্প প্রতিষ্ঠান আছে। জিডিপিতে এই খাতের অবদান হলো প্রায় ২৫ শতাংশ। তিনি বলেন, এসএমই’র বাইরে মাইক্রো এবং কুটিরশিল্পও যুক্ত করা হয়েছে। মাইক্রো, কুটির, ক্ষুদ্র ও মাঝারি শিল্প মিলে এসএমই। মোটামুটি সারা পৃথিবীতেই এভাবেই এসএমই গণ্য করা হয়। ছয়টি উদ্দেশ্য সামনে রেখে নীতিমালা করা হচ্ছে জানিয়ে মন্ত্রিপরিষদ সচিব বলেন, এসএমই উদ্যোক্তাদের অর্থপ্রাপ্তির সুযোগ, প্রযুক্তি ও উদ্ভাবনের সুযোগ, বাজারে প্রবেশের সুযোগ, শিক্ষা ও প্রশিক্ষণের সুযোগ, ব্যবসায় সহযোগিতা এবং তথ্যের সুযোগ প্রাপ্তি। নীতিমালায় বাস্তবায়ন কৌশলে বলা হয়েছে, কৌশলগত অর্থায়ন সুবিধা প্রাপ্তিতে এসএমইখাতের সুযোগ বৃদ্ধি করা, এসএমইখাতের ঋণ প্রবাহ বৃদ্ধি করা, অর্থায়নের ব্যবস্থা করা, এসএমই ক্রেডিট গ্যারান্টি ফান্ড চালু করা। এই ফান্ড চালু হলে মটগেজ থাকবে না, অর্থপ্রাপ্তি সহজ হবে। সহজ শর্ত ও স্বল্প সুদে ঋণ দেওয়ার কথা বলা হয়েছে। এছাড়াও নতুন ব্যবসা প্রতিষ্ঠান (স্টার্টআপ) করার ক্ষেত্রে সহায়তা করা, অনলাইন বা ডিজিটাল ব্যবস্থা চালুর মাধ্যমে স্টার্টআপ প্রক্রিয়া সহজ করার কথা বলা রয়েছে। তথ্য প্রযুক্তির ব্যবহার নিয়ে নীতিমালায় ই-কমার্স, অনলাইন সাপোর্ট, আউট সোর্সিং ও আইটিভিত্তিক অ্যাপ্লিকেশনের মাধ্যমে এসএমই’দের সহায়তা দেওয়ার কথা বলা হয়েছে। নারী উদ্যোক্তাদের জন্য বিশেষ সুবিধা দেওয়ার কথা বলা আছে জানিয়ে মন্ত্রিপরিষদ সচিব বলেন, তাদের সক্ষমতা ও দক্ষতা বৃদ্ধির জন্য প্রশিক্ষণের ব্যবস্থা করা, ঋণ দেওয়া, তহবিল গঠন, প্রাতিষ্ঠানিক সক্ষমতা বৃদ্ধি, উদ্বুব্ধকরণ এবং বাজার সংযোগে সুযোগ বৃদ্ধি করা। টেকসইয়ের জন্য ফরোয়ার্ড ও ব্যাকওয়ার্ড লিংকেজের ব্যবস্থা করার কথা বলা হয়েছে নীতিমালায়। এসএমই তথ্যভান্ডার তৈরি, পরিবেশবান্ধব শিল্প প্রতিষ্ঠায় এসএমই’দের উৎসাহিতকরণ, শিল্প বর্জ ব্যবস্থাপনায় এসএমই’দের প্রণোদনা দেওয়া, পরিবেশবান্ধব শিল্পপ্রযুক্তির উন্নয়ন এবং ব্যবহার বৃদ্ধির কথা বলা হয়েছে। মন্ত্রিপরিষদ সচিব জানান, এসব নীতি-কৌশল বাস্তবায়নের জন্য দুই ধরনের পর্ষদ থাকবে। শিল্পমন্ত্রীর নেতৃত্বে ৩৭ জনের পর্ষদে প্রতিমন্ত্রী সহ-সভাপতি, বাংলাদেশ ব্যাংকের গভর্নর, বিভিন্ন মন্ত্রণালয়ের সচিব, এসএমই ফাউন্ডেশনের চেয়ারম্যান, বেসরকারিখাতের পাঁচজন প্রতিনিধি থাকবেন। আর সচিবের নেতৃত্বে পর্ষদে এসএমই ফাউন্ডেশনের ব্যবস্থাপনা পরিচালকসহ ২৯ জন সদস্য থাকবেন। এই নীতিমালা ২০১৯-২০২৪ সালের জুন পর্যন্ত কার্যকর করা হবে বলে জানান মন্ত্রিপরিষদ সচিব। বর্তমানে এসএমই উদ্যোক্তারা এসএমই ফাউন্ডেশন এবং ব্যাংক থেকে সিঙ্গেল ডিজিটে ৫০ হাজার থেকে দেড় লাখ টাকা পর্যন্ত ঋণ সুবিধা পায় বলে ব্রিফিংয়ে জানান শিল্প মন্ত্রণালয়ের একজন কর্মকর্তা। তিনি জানান, কর্মপরিকল্পনা অনুযায়ী ১৩৬টি অ্যাকটিভিটিজ ও ৬২টি কৌশল আছে। সময়াবদ্ধ কর্মপরিকল্পনা অনুযায়ী বলে দেওয়া রয়েছে কী কী অর্জন করতে হবে। এগুলো বাস্তবায়িত হলে ২০২৫ সালে এসএমইখাতে জিডিপিতে অবদান ৩২ শতাংশে উন্নীত হবে। এসএমই এর জন্য ২০০৫ সালে একটি কৌশল ছিল জানিয়ে তিনি বলেন, এবারই প্রথম নীতিমালা হলো। পরমাণু বিজ্ঞানী নঈম চৌধুরীর মৃত্যুতে শোক: বিশিষ্ট পরমাণু বিজ্ঞানী ও বাংলাদেশ পরমাণু শক্তি নিয়ন্ত্রণ কর্তৃপক্ষের চেয়ারম্যান অধ্যাপক ড. নঈম চৌধুরীর মৃত্যুতে শোকপ্রকাশ করেছে মন্ত্রিসভা। মন্ত্রিপরিষদ সচিব মোহাম্মদ শফিউল আলম বলেন, সভার শুরুতে বিশিষ্ট পরমাণু বিজ্ঞানী ও বাংলাদেশ পরমাণু শক্তি নিয়ন্ত্রণ কর্তৃপক্ষের চেয়ারম্যান অধ্যাপক ড. নঈম চৌধুরীর মৃত্যুতে মন্ত্রিসভা গভীর শোকপ্রকাশ করেছে। গত ৬ সেপ্টেম্বর ঢাকার একটি হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মারা যান নঈম চৌধুরী (৭৪)।

কুষ্টিয়ায় মটরসাইকেল চুরির মামলায় পাঁচ আসামীর দুই বছরের কারাদন্ড

নিজস্ব প্রতিনিধি ॥ কুষ্টিয়া পৌরসভার ১৫ নং ওয়ার্ডের চাঞ্চল্যকর মটরসাইকেল চুরির মামলার রায় গতকাল সিনিয়র জুডিসিয়াল আদালত ভবন ৩ এ প্রকাশ পেয়েছে। ঘটনার বিবরনে জানা যায়, ২০১১ সালের জুগিয়া গ্রামের প্রাক্তন মেম্বর সরোয়ার হোসেনের ছেলে বাবুল আক্তারের ব্যবহৃত পালসার ১৩৫ সিসি মটরসাইকেল নিজ বাড়ি হতে চুরি করে একই এলাকার রেজাউল কবীরের ছেলে আসাদুল (২৮), আজীমের ছেলে মিজানুর রহমান মিজান (৩০) আলাউদ্দীন চাষীর ছেলে আলীম (২৮), আজীজের ছেলে রোকন ও নফিলউদ্দিন লাটুর ছেলে ফারুক (৩০) প্রমূখ। সূত্রমতে, ২০১১ সালের ৬ সেপ্টেম্বর তারিখে দিবাগত রাত্রে নিজ বাড়ি হতে বাবুলের পালসার মোটরসাইকেলটি চুরি হয়। পরবর্তীতে,ভুক্তভোগী বাবুল আক্তার নিজ বাদী হয়ে উক্ত আসামীদের বিপক্ষে ০৮/০৯/২০১১ ইং তারিখে কুষ্টিয়া মডেল থানায় একটি এজাহার দায়ের করেন। তারই পরিপ্রেক্ষিতে, মটরসাইকেল চুরির বিষযটি আমলে নিয়ে তদন্ত শুরু করে কুষ্টিয়ার পুলিশ প্রশাসন। এক পর্যায়,আসামীদের ধরপাকড় ও জবানবন্দীতে মটরসাইকেল চুরির বিষয়টি নিশ্চিত করেন কুষ্টিয়ার প্রশাসন। আদালত সূত্রে জানা যায়, দীর্ঘ আট (৮) বছর মামলা চলাকালে অনেক ঘাত-প্রতিঘাত পেড়িয়ে গতকাল কুষ্টিয়া সিনিয়র জুডিসিয়াল আদালত ৩ এর বিচারক সেলিনা খাতুন জি আর মামলা নং ১৭/৩৩২ এর আসামী আসাদুল (২৮),মিজানুর রহমান মিজান (৩০) আলীম (২৮), রোকন ও ফারুক (৩০) কানাবিল রোড, জুগিয়া কুষ্টিয়াকে দুই বছরের সশ্রম কারাদন্ড প্রদান করেন। সূত্রে জানা যায়, দীর্ঘ আট বছর ধরে বিচারকার্য চলে,এবং বাদীর পক্ষে মামলা পরিচালনা করেন কুষ্টিয়া জজকোর্টের এপিপি এ্যাড সাজ্জাদ হোসেন সেনা।

ভেড়ামারায় ৫ ভিক্ষুককে পুনর্বাসন

আল-মাহাদী ॥ কুষ্টিয়ার ভেড়ামারাকে ভিক্ষুকমুক্ত করতে ও তাদের আর্থিকভাবে স্বাবলম্বী করে গড়ে তুলতে ভিক্ষুকদের মাঝে মুদি দোকান ঘর তৈরির জন্য নগদ টাকা, গরু ও ছাগল বিতরণ করা হয়েছে। ভেড়ামারা উপজেলা প্রশাসনের উদ্যোগে গতকাল মঙ্গলবার সকাল সাড়ে ১১টায় ভেড়ামারা উপজেলা অডিটোরিয়ামে কুষ্টিয়া জেলা প্রশাসক মোঃ আসলাম আলী তালিকাভুক্ত ভিক্ষুকদের মাঝে নগদ টাকা, গরু ও ছাগল বিতরণ করেন। এসময় ভেড়ামারা উপজেলা নির্বাহী অফিসার সোহেল মারুফ, ভেড়ামারা উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান আলহাজ¦ আক্তারুজ্জামান মিঠু, ভেড়ামারা থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) মোল্লা খবির আহমেদ, পৌর মেয়র আলহাজ¦ শামিমুল ইসলাম ছানা, চাদগ্রাম ইউনিয়নের চেয়ারম্যান আব্দুল হাফিজ তপন, মোকারিমপুর ইউনিয়নের চেয়ারম্যান মোঃ আব্দুস সামাদ, স্থানীয় সাংবাদিকবৃন্দ সহ উপকার ভোগীরা উপস্থিত ছিলেন। ভেড়ামারা উপজেলা নির্বাহী অফিসার সোহেল মারুফ জানান, ভেড়ামারাকে ভিক্ষুকমুক্ত করতে উপজেলার সকল ভিক্ষুককে পুর্নবাসন করতে উদ্যোগ নেওয়া হযেছে। এরই অংশ হিসেবে আজকে ধরমপুর ইউনিয়নের আমের আলী, হালেমা খাতুন, হাজেরা খাতুন ও চাদগ্রাম ইউনিয়নের হিড়িমদিয়া গ্রামের খোয়াজ ফকিরকে মুদি দোকানঘর তৈরির জন্য নগদ বিশ হাজার টাকা ও ভেড়ামারা পৌরসভার ফারাকপুর এলাকার আফজাল হোসেন মোল্লাকে ১টি গরু ও ১টি ছাগল বিতরণ করা হয়েছে। উপজেলার সকল ভিক্ষুকদের একটি তালিকা করা হয়েছে পর্যায়ক্রমে তাদের সকলকে পুর্নবাসন করা হবে এর মাধ্যমে ভেড়ামারাকে ভিক্ষুকমুক্ত করে গড়ে তোলা হবে। এছাড়াও আজ সকালে বাহিরচর ইউনিয়নের দামুকদিয়া গ্রামের মোঃ সুজন আলীকে দূর্যোগ সহনীয় ঘরের চাবী হস্তান্তর করেন জেলা প্রশাসক মহোদয়

কুষ্টিয়া জেলার শ্রেষ্ঠ ওসির স্বীকৃতি পেলেন আবুল কালাম

আমলা অফিস ॥ কুষ্টিয়ার মিরপুর থানার অফিসার ইনচার্জ আবুল কালাম আগষ্ট-২০১৯ বিবেচনায় শ্রেষ্ঠ অফিসার ইনচার্জ নির্বাচিত হয়েছে। এনিয়ে তিনি ২য় বার কুষ্টিয়া জেলার শ্রেষ্ঠ অফিসার ইনচার্জের স্বীকৃতি পেলেন। এর আগে চলতি বছরের মে-২০১৯ এ তিনি  শ্রেষ্ঠ অফিসার ইনচার্জ হয়েছিলেন। রোববার কুষ্টিয়া পুলিশ লাইনে অনুষ্ঠিত মাসিক কল্যাণ সভায় ওয়ারেন্ট তামিল, মূলতবী মামলায় তদন্ত, পবিত্র ঈদুল আযহা উপলক্ষে আইন শৃঙ্খলা পরিস্থিতি ভালো রাখায় এবং এলাকার দীর্ঘদিনের মতবিরোধ নিরসনকল্প উভয় পক্ষ, স্থানীয় জনপ্রতিনিধি ও গন্যমান্য ব্যাক্তিদের সমন্বয়ে আইন শৃঙ্খলা রক্ষায় কার্যকর ভূমিকা রাখার স্বীকৃতি স্বরূপ আবারও মিরপুর থানার অফিসার ইনচার্জ আবুল কালাম জেলার শ্রেষ্ঠ অফিসার ইনচার্জ হিসেবে নির্বাচিত হয়ে ক্রেস্ট গ্রহণ করেন। পুলিশ সুপার এস এম তানভীর আরাফাত তাকে ক্রেস্ট প্রদান করেন। এ সময়ে অতিরিক্ত পুলিশ সুপার এ কে এম জহিরুল ইসলাম, মোস্তাফিজুর রহমান, আজাদ রহমান প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন।

হরিণাকুন্ডুতে আধিপত্য বিস্তারকে কেন্দ্র করে দু’পক্ষের সংঘর্ষে ৩৫ জন আহত

ঝিনাইদহ প্রতিনিধি ॥ ঝিনাইদহে আধিপত্য বিস্তারকে কেন্দ্র করে দু’পক্ষের সংঘর্ষে নারীসহ অন্তত ৩৫ জন আহত হয়েছে। সোমবার সকালে হরিণাকুন্ডু উপজেলার তালবাড়িয়া গ্রামে এ ঘটনা ঘটে। স্থানীয়রা জানায়, দীর্ঘদিন ধরে আধিপত্য বিস্তার নিয়ে তালবাড়ীয়া গ্রামের শরিফুল ইসলাম ও সমির উদ্দিনের সমর্থকদের মধ্যে বিরোধ চলে আসছিল। রোববার বিকেলে শরিফুলের সমর্থক বশিরের সাথে সমিরের সমর্থক জামালের কথা কাটা-কাটি হয়। এরই জের ধরে সোমবার সকালে উভয় পক্ষের লোকজন দেশীয় অস্ত্র-শস্ত্র নিয়ে সংঘর্ষে জড়িয়ে পড়ে। এতে উভয় পক্ষের নারীসহ অন্তত ৩৫ জন আহত হয়। খবর পেয়ে পুলিশ ঘটনাস্থলে পৌঁছে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রনে আনে। আহতদের মধ্যে, চাঁদ আলী, গোলাম রসুল, আমির হোসেন, ময়েন উদ্দিন,  শরিফুল ইসলাম, হায়দার আলী, উজ্জল মন্ডল, আনোয়ার হোসেন, বিল্লাল হোসেন, হাসান আলী,  রাব্বুল হোসেন, বসির উদ্দিন, মনিরুল ইসলাম, শহিদ হোসেন, সুফিয়া খাতুন ও হাসিনা বেগমসহ ৩৫ জনকে উদ্ধার করে ঝিনাইদহ সদর হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। এদের মধ্যে সুফিয়া খাতুন ও হাসিনা বেগমের অবস্থা গুরুতর বলে জানিয়েছেন চিকিৎসক। হরিণাকুন্ডু থানার ওসি আসাদুজ্জামান জানান, সংঘর্ষের ঘটনার শোনার পর সেখানে ফোর্স পাঠানো হয়েছে। এলাকার পরিস্থিতি বর্তমানে স্বাভাবিক রয়েছে। পুনরায় সংঘর্ষ এড়াতে এলাকায় পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছে।

পবিত্র মহররম-এ- আশুরা উপলক্ষে

আজ হযরত বাবা নফর শাহ্ মাজার কমিটির পক্ষ থেকে তাজিয়া মিছিল

নিজ সংবাদ ॥ প্রতিবারের ন্যায় এবারও হযরত বাবা নফর শাহ্ (রহঃ) এর মাজার কমিটির আয়োজনে, পবিত্র মহররম-এ- আশুরা উপলক্ষে এক তাজিয়া মিছিলের আয়োজন করা হয়েছে। আজ ১০ মহররম ১৪৪১ হিজরী/১০ সেপ্টেম্বর ২০১৯ খ্রি. মঙ্গলবার সকাল ১০ টায়  হযরত বাবা নফর শাহ্ (রহঃ) এর মাজার প্রাঙ্গন হতে এ তাজিয়া মিছিল বের করা হবে। তাজিয়া মিছিলটি মীর মশাররফ হোসেন সড়ক হয়ে পৌর ১নং গোরস্থানে জিয়ারত শেষে আর সি আর সি স্ট্রীটে বার শরীফ দরবারে জিয়ারত শেষে বক চত্বর থানার মোড় হয়ে এনএস রোড দিয়ে বড় বাজার রেল গেট হয়ে মাজার প্রাঙ্গনে ফিরে আসবে। উক্ত তাজিয়া মিছিলে সকল ভক্ত ও আশেকানদের অংশ গ্রহণ করার জন্য মাজার কমিটির পক্ষ থেকে বিশেষভাবে অনুরোধ জানানো হয়েছে। আমন্ত্রণে হযরত বাবা নফর শাহ্ (রহঃ) এর মাজার কমিটির সাধারণ সম্পাদক মোঃ রেজাউল হক।

মির্জা ফখরুলদের রাজনীতি মিথ্যার ওপর প্রতিষ্ঠিত – হাছান মাহমুদ

ঢাকা অফিস ॥ তথ্যমন্ত্রী ও আওয়ামী লীগের প্রচার সম্পাদক ড. হাছান মাহমুদ বলেছেন, ‘মির্জা ফখরুল সাহেবদের রাজনীতি মিথ্যার ওপর প্রতিষ্ঠিত এবং ক্রমাগত মিথ্যাচারের কারণে ‘মির্জা’ নয় ‘মিথ্যা ফখরুল’ বলছেন তাকে অনেকে।’ গতকাল সোমবার বিকেলে রাজধানীর সেগুনবাগিচা আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা ইনস্টিটিউটে জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জন্মশতবার্ষিকী উদযাপন উপলক্ষে মিডিয়া, প্রচার ও ডকুমেন্টেশন উপকমিটির চতুর্থ সভাশেষে সংসদে প্রধানমন্ত্রীর বক্তব্যকে ‘অসত্য’ বলে বিএনপি মহাসচিবের মন্তব্য নিয়ে সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে তথ্যমন্ত্রী একথা বলেন। ড. হাছান বলেন, ‘প্রধানমন্ত্রীর বক্তব্য নিয়ে মির্জা ফখরুলের এ ধরণের মন্তব্য রাজনৈতিক শিষ্টাচার বহির্ভূত। তার ক্রমাগত মিথ্যাচারের কারণে তাকে অনেকেই ‘মির্জা’ নয় ‘মিথ্যা ফখরুল’ বলেন। তিনি এমন মিথ্যাচার করেন যা শুনতে পেলে গোয়েবলস্ও কবরে নড়ে উঠতেন।’ ‘বিএনপির রাজনীতিই মিথ্যার ওপরে প্রতিষ্ঠিত’ উল্লেখ করে মন্ত্রী বলেন, ‘বেগম জিয়া এরশাদ সাহেবের কাছ থেকে দুটি বাড়ি ও দশ লাখ টাকা নিয়েছেন। অপ্রিয় এ সত্য সংসদে উঠে আসায় মির্জা ফখরুল এই মিথ্যাচার করেছেন, যা কোনভাবেই কাম্য নয়।’ রংপুর উপনির্বাচনে বিএনপির পক্ষ থেকে বঙ্গবন্ধুর খুনি সম্পৃক্ত ব্যক্তিকে মনোনয়ন দেওয়া হয়েছে এমন প্রশ্নের জবাবে তথ্যমন্ত্রী বলেন, ‘জিয়াউর রহমান শুধু বঙ্গবন্ধুর খুনিদের আশ্রয় প্রশ্রয়ই দেননি, রক্ষার কাজও করেছেন, ইমডেমনিটি অধ্যাদেশ জারি করে খুনিদের বিচারের পথ বন্ধ করেছেন। আর বেগম জিয়া আরো একধাপ এগিয়ে খুনি-রাজাকারদের মন্ত্রিসভায় স্থান দিয়ে তাদের গাড়িতে দেশের পতাকা তুলে দিয়েছেন। বিএনপির রাজনীতির প্রতিষ্ঠা তাই খুনের ওপরও। এসময় বেগম জিয়ার স্বাস্থ্য ও চিকিৎসা নিয়ে বিএনপির অভিযোগ খন্ডন করে তথ্যমন্ত্রী বলেন, ‘সরকার খালেদা জিয়ার সর্বোচ্চ চিকিৎসা ও স্বাস্থ্য সুবিধা নিশ্চিত করেছে। তারপরও বেগম জিয়ার স্বাস্থ্য নিয়ে বিএনপি যেভাবে অপরাজনীতি করছে, তাতে বেগম জিয়াকে খাটো করা হচ্ছে। বেগম জিয়ার হাঁটু ও কোমরের পুরনো ব্যাথা নিয়ে রাজনীতি বিএনপি এবং বেগম জিয়া উভয়ের জন্যই লজ্জাকর। অন্যকোন ইস্যু না পেয়ে তারা বেগম জিয়ার হাঁটু ও কোমরের পুরনো ব্যথাকেই ইস্যু করার চেষ্টা করছে।’ বঙ্গবন্ধুকে নিয়ে আন্তর্জাতিক সম্মেলন এদিকে, বঙ্গবন্ধুর জন্মশতবার্ষিকী উদযাপন উপলক্ষে মিডিয়া, প্রচার ও ডকুমেন্টেশন উপকমিটির সভায় মন্ত্রী বলেন, ‘জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু বিশ্বের সকল শোষিতের পক্ষে ছিলেন। তার শোষণহীন বিশ্ব গড়ে তোলার স্বপ্নকে সবার মাঝে ছড়িয়ে দিতে বাংলাদেশ ও বিশ্বের প্রধান প্রধান আটটি শহরে বঙ্গবন্ধুকে নিয়ে আন্তর্জাতিক সম্মেলন আয়োজন করা হবে।’ উপকমিটির সদস্য সচিব হিসেবে তথ্য সচিব আবদুল মালেক বঙ্গবন্ধুকে নিয়ে চলচ্চিত্র নির্মাণ, বিভিন্ন টিভি চ্যানেলে নানা রকমের অনুষ্ঠান নির্মাণ, কফি টেবিল বুক-পকেট বুক ইত্যাদি প্রচার সামগ্রী তৈরির পরিকল্পনা পেশ করেন। বস্ত্র ও পাট মন্ত্রী গোলাম দস্তগীর গাজী বীরপ্রতীক, তথ্য প্রতিমন্ত্রী ডা. মো. মুরাদ হাসান, সাবেক তথ্য উপদেষ্টা ইকবাল সোবহান চৌধুরীসহ সভায় উপস্থিত সদস্যরা জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জন্মশতবার্ষিকী উদযাপনের অংশ হিসেবে বঙ্গবন্ধুর প্রতি জনগণের ভালোবাসা প্রকাশে এই উদ্যোগগুলো সহায়ক হবে বলে আশাবাদ ব্যক্ত করেন।

ডেঙ্গু প্রতিরোধে কুষ্টিয়া পৌরসভার কার্যক্রম অব্যাহত রয়েছে

প্রতিটি ওয়ার্ডে ফগার মেশিনের মাধ্যমে কিট “বেনটাসিড ২৫০ ইসি” ছেটানো হচ্ছে

কুষ্টিয়া পৌরসভার জননন্দিত মেয়র আনোয়ার আলী এ বিষয়ে বলেন, দেশব্যাপী এডিস মশা ও ডেঙ্গুর প্রকোপ দেখা দেওয়ার কারনে কুষ্টিয়া পৌর এলাকার এডিস মশার লাভা নিধনে নতুন উদ্দ্যোমে আরোও কর্মসূচি গ্রহন করা হয়েছে। এডিস মশার লাভা নিধনে সিঙ্গাপুর থেকে সংগৃহীত এই কিট “বেনটাসিড ২৫০ ইসি” বড় ও ছোট ফগার মেশিন দিয়ে পৌর এলাকার বিভিন্ন শিক্ষা-প্রতিষ্ঠান, ডোবা-নালা, ড্রেন, কালভার্ট সহ পৌর বাসিন্দাদের বসতবাড়ী ও তাদের আঙ্গিনায় ছেটানো হচ্ছে। সেই সাথে চলমান কার্যক্রমের সাথে আরোও নতুন ১৩  টি ফগার  ও স্প্রে মেশিন যুক্ত হয়েছে। উল্লেখ্য থাকে যে, গত ৬ সেপ্টেম্বর হতে ৯ সেপ্টেম্বর পর্যন্ত পৌর এলাকার ৯,১০, ১১ ও ১২ নং ওয়াডের্র প্রতিটি স্থানে পূনরায় এই কার্যক্রম পরিচালিত হয়েছে। এই মশক নিধন অভিযান কার্যক্রম পূনরায় সকল ওয়ার্ডে পরিচালিত হবে। গত জুলাই ২৫ তারিখ থেকে কুষ্টিয়া পৌরসভার আয়োজনে আনুষ্ঠানিক কার্যক্রম শুরু হয়। এর পর হতে পৌরসভার মেয়রের নির্দেশনা পর্যায়ক্রমে পৌর এলাকার পূনরায় ২১ টি ওয়ার্ডে স্বস্ব কাউন্সিলরের নেতৃত্বে কীটনাশক সহ ফগার মেশিন দিয়ে স্প্রে করা হয়েছিল। এছাড়াও পৌরসভার পরিচ্ছন্ন কর্মীরা পৌর এলাকায় পরিষ্কার-পরিচ্ছন্নতা অব্যাহত রেখেছে । সংবাদ বিজ্ঞপ্তি

দৌলতপুরে কৃষক ভবানী দাসেেক হত্যার অভিযোগ

দৌলতপুর প্রতিনিধি ॥ কুষ্টিয়ার দৌলতপুরে ভবানী দাস (৪০) নামে এক কৃষককে হত্যার অভিযোগ উঠেছে। উপজেলার পিয়াপুর ইউনিয়নের পিয়ারপুর দাসপাড়া গ্রামে হত্যাকান্ডের এ ঘটনা ঘটেছে। গতকাল সোমবার সকালে নিহতের লাশ উদ্ধার করে কুষ্টিয়া জেনারেল হাসপাতাল মর্গে প্রেরণ করেছে পুলিশ। দৌলতপুর থানা পুলিশ ও স্থানীয় সূত্রে জানাগেছে, রবিবার রাত সাড়ে ৯টার দিকে জমি সংক্রান্ত বিরোধ নিয়ে প্রতিবেশী সুমা দাস ও জিতেন দাসের সাথে ভবানী দাসের কথা কাটাকাটি হয়। এক পর্যায়ে সুমা দাস ও জিতেন দাস ক্ষুব্ধ হয়ে ভবানী দাসকে ধাক্কা দিলে সে মাটিতে লুটিয়ে পড়ে জ্ঞান হারায়। এলাকাবাসী তাকে উদ্ধার করে হাসপাতালে নিলে কর্তব্যরত চিকিৎসক ভবানী দাসকে মৃত ঘোষনা করেন। এ বিষয়ে দৌলতপুর থানার ওসি এস এম আরিফুর রহমান বলেন, এটা হত্যা কি না তা নিশ্চিত করে বলা যাচ্ছে না। নিহতের মরদেহ ময়না তদন্তের জন্য মর্গে প্রেরণ করা হয়েছে। ময়না তদন্ত শেষে নিশ্চিত হওয়া যাবে। তবে পরিস্থিতি স্বাভাবিক রাখতে ঘটনাস্থলে পুলিশ মোতায়েন রয়েছে।