কুষ্টিয়া জেলা শ্রমিকলীগের শোক

কুষ্টিয়া জেলা ছাত্রলীগের সাবেক ভারপ্রাপ্ত সাধারণ সম্পাদক হরলেনের মৃত্যুতে গভীর শাক প্রকাশ করেছেন কুষ্টিয়া জেলা জাতীয় শ্রমিক লীগের সাধারণ সম্পাদক আলহাজ্ব মোঃ আমজাদ আলী খানের ও যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক এইচ এম মতিউর রহমান। তারা মরহুমের রুহের মাগফেরাত কামনাসহ শোকাহত পরিবারের প্রতি গভীর সমবেদনা জ্ঞাপন করেন।

দ্বিতীয় দিনের মতো ছাত্রদলের কাউন্সিলের মনোনয়নপত্র বিতরণ

ঢাকা অফিস ॥ বাংলাদেশ জাতীয়তাবাদী ছাত্রদলের ষষ্ঠ কাউন্সিল সামনে রেখে প্রার্থীদের মধ্যে গতকাল রোববার দ্বিতীয় দিনের মতো মনোনয়নপত্র বিতরণ হয়েছে। পুনঃতফসিল অনুযায়ী দুপুর সাড়ে ১২টায় নয়াপল্টনে বিএনপির কেন্দ্রীয় কার্যালয় থেকে মনোনয়নপত্র বিতরণ শুরু হয়। দুপুর ২টা পর্যন্ত ফরম বিতরণ চলে। মনোনয়নপত্র বিতরণ কার্যক্রমের উদ্বোধন করেন বিএনপির ভাইস চেয়ারম্যান ও ছাত্রদলের সাবেক সভাপতি শামসুজ্জামান দুদু। দ্বিতীয় দিন মনোনয়ন ফরম বিতরণের সময় ছাত্রদলের সাবেক কেন্দ্রীয় সভাপতি শামসুজ্জামান দুদু বলেন, যখন একাত্তর সালের অর্জিত অধিকার ভূলুণ্ঠিত, যে দেশের সবচেয়ে জনপ্রিয় নেত্রীকে মিথ্যা মামলায় অবিচারে কারাগারে বন্দি করে রাখা হয়েছে। আগামি দিনের রাষ্ট্রনায়ক হিসেবে বাংলাদেশ মানুষ যাকে মনে করেন সেই নেতা তারেক রহমান স্বাচ্ছন্দ্যে বাংলাদেশে থাকতে পারেন না। হাজার হাজার নেতাকর্মী হয় জেলে না হয় গুমের মধ্যে মৃত্যুর মুখোমুখি। প্রায় ২৬ লাখ মামলা নিয়ে যখন নেতাকর্মীরা আতঙ্কে দিন কাটাচ্ছেন, যে দেশে কৃষক ও শ্রমিক তার ঘামের ন্যায্যমূল্য পায় না, যে দেশে কোরবানির চামড়া রাস্তায় ফেলে দেওয়া হয়, যে দেশের নারী তার মর্যাদা নিয়ে থাকতে পার না ঠিক এমনই এক মুহূর্তে বাংলাদেশ জাতীয়তাবাদী ছাত্রদল তার রাজনৈতিক রক্ষায় মানুষের অধিকার প্রতিষ্ঠায় নতুন সম্ভাবনাময় দিনের সৃষ্টির লক্ষ্যে ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যানের পরামর্শে সাবেক ছাত্রনেতারা উদ্যোগী হয়ে যে ভূমিকা গ্রহণ করেছে সেটি হচ্ছে কাউন্সিলের মাধ্যমে জাতীয়তাবাদী ছাত্রদলের নতুন নেতৃত্ব নির্বাচন। তিনি বলেন, গতকাল (গত শনিবার) এটা শুরু হয়েছে আজকে ফরম পূরণের শেষ দিন। এরপর ধারাবাহিকভাবে বিভিন্ন ঘটনার মধ্য দিয়ে ১৪ সেপ্টেম্বর নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে। এই কর্মকান্ডের মধ্যদিয়েই এদেশে স্বৈরাচার পতনের যে দৃষ্টান্ত ছাত্রদল অতীতে রেখেছেন সেই উজ্জ্বল দৃষ্টান্ত আগামি দিনেও পতপত করে তারা উড়াবেন। এসময় উপস্থিত ছিলেন ছাত্রদলের সাবেক সভাপতি রুহুল কবির রিজভী, ডাকসুর সাবেক জিএস খায়রুল কবির খোকন, ছাত্রদলের সাবেক সভাপতি ফজলুল হক মিলন, ছাত্রদলের সাবেক সভাপতি শহীদ উদ্দিন চৌধুরী এ্যানী, ছাত্রদলের সাবেক সভাপতি আজিজুল বারী হেলাল, ছাত্রদলের সাবেক প্রথম যুগ্ম আহ্বায়ক এবিএম মোশাররফ হোসেন, ছাত্রদলের সাবেক সাধারণ সম্পাদক শফিউল বারী বাবু, ছাত্রদলের সাবেক সভাপতি আবদুল কাদির ভূঁইয়া জুয়েল, ছাত্রদলের সাবেক সভাপতি রাজিব আহসান ও ছাত্রদলের সাবেক সাধারণ সম্পাদক আকরামুল হাসান। গতকাল রোববার সভাপতি পদে মনোনয়নপত্র সংগ্রহ করেন কেন্দ্রীয় কমিটির সাবেক বৃত্তি ও ছাত্র কল্যাণ বিষয়ক সম্পাদক কাজী রওনকুল ইসলাম শ্রাবণ। সহ-অর্থ বিষয়ক সম্পাদক ফকির আশরাফুল আলম লিঙ্কন, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের সভাপতি আল মেহেদী তালুকদার, ডাকসু নির্বাচনে ছাত্রদলের ভিপি প্রার্থী মোস্তাফিজুর রহমান। এ ছাড়া সভাপতি পদে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের সহ-সভাপতি সাজিদ হাসান বাবু মনোনয়নপত্র সংগ্রহ করেছেন। সাধারণ সম্পাদক পদে মনোনয়নপত্র সংগ্রহ করেছেন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের সহ-সভাপতি আমিনুর রহমান আমিন, সাংগঠনিক সম্পাদক আবু তাহের, যুগ্ম সম্পাদক তানজিল হাসান, শাহ নেওয়াজ, ইকবাল হোসেন শ্যামল, রিজভী আহমেদ, রিয়াদ মুহাম্মদ ইকবাল হোসাইন। এছাড়া গত শনিবার সভাপতি পদের জন্য মনোনয়ন ফরম সংগ্রহ করেছেন ছাত্রদলের সাবেক তথ্য ও গবেষণা বিষয়ক সম্পাদক মামুন খান, সাবেক সহ-সাংগঠনিক সম্পাদক আসাদুল আলম টিটু, ছাত্রদল নেতা আলিমুল হাকিম মুন্সি, খলিলুর রহমান ও আবু জাহান হিমেল। সাধারণ সম্পাদক পদের জন্য মনোনয়ন ফরম সংগ্রহ করেছেন, ছাত্রদলের সাবেক স্কুল বিষয়ক সহ-সম্পাদক আলাউদ্দিন খান, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্রদলের যুগ্ম সম্পাদক সাইফ মাহমুদ জুয়েল, নারায়ণগঞ্জ জেলা ছাত্রদলের সভাপতি মশিউর রহমান রনি ও ঢাকা কলেজ ছাত্রদল নেতা এম এ কাইয়ুম।

সহপাঠীকে ধর্ষণের মামলায় খুলনার কর কমিশনারের ছেলে রিমান্ডে

ঢাকা অফিস ॥ বিয়ের প্রলোভন দিয়ে সহপাঠীকে ধর্ষণের অভিযোগে গ্রেফতার খুলনার কর কমিশনারের ছেলে শিঞ্জন রায়কে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য একদিনের পুলিশ হেফাজতে পাঠিয়েছে আদালত। পুলিশের করা রিমান্ড আবেদনের শুনানি করে গতকাল রোববার খুলনার মহানগর হাকিম মো. শাহীদুল ইসলাম এ রিমান্ড মঞ্জুর করেন। শুক্রবার দুপুরে ওই ছাত্রী বাদী হয়ে নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইনে শিঞ্জন রায়ের বিরুদ্ধে মামলা দায়ের করেন। শিঞ্চন খুলনার কর কমিশনার প্রশান্ত কুমার রায়ের ছেলে। ওই ছাত্রী ও শিঞ্জন খুলনার নর্থ ওয়েস্টার্ন ইউনিভার্সিটির আইন বিভাগের শিক্ষার্থী। মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা সোনাডাঙ্গা থানার এসআই তৌহিদুর রহমান বলেন, শুক্রবার শিঞ্জনকে আদালতে হাজির করে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য পাঁচ দিনের রিমান্ডের নেওয়ার আবদেন করা হয়।শুনানি শেষে বিচারক একদিনের রিমান্ড মঞ্জুর করেন। মামলার বরাতে ওসি বলেন, এক বছর আগে শিঞ্জন মেয়েটিকে প্রেমের প্রস্তাব দেন। এরপর বিয়ের প্রলোভন দেখিয়ে শিঞ্জন তাকে বাসাসহ বিভিন্ন স্থানে নিয়ে ধর্ষণ করে। মেয়েটি বর্তমানে ছয়মাসের অন্তঃসত্ত্বা। শিঞ্জনের বিয়ের খবর পেয়ে ওই ছাত্রী বৃহস্পতিবার রাত ১০টার দিকে নগরীর মুজগুন্নী আবাসিক এলাকার ১৬নম্বর রোডের বাড়িতে গিয়ে তার সঙ্গে দেখা করেন। এ সময় মেয়েটি বিয়ের বিষয়ে জিজ্ঞাস করলে শিঞ্জন তাকে সেখান থেকে জোর করে একটি অটোরিকশায় তুলে দিতে গেলে স্থানীয়দের নজরে আসে। পরে থানায় খবর দেওয়া হলে পুলিশ গিয়ে তারা দুই জনকেই সোনাডাঙ্গা মডেল থানায় নিয়ে যায়। এদিকে আদালতের নির্দেশে গত শনিবার বিকালে ডাক্তারি পরীক্ষা শেষে ওই ছাত্রীকে খুলনা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের ওয়ান স্টপ ক্রাইসিস সেন্টার থেকে তার মায়ের কাছে হস্তান্তর করা হয়েছে বলে ওসি মমতাজুল জানান।

আলোকচিত্রী শহিদুলের মামলার বৈধতার রুল ১৮ ডিসেম্বরের মধ্যে নিষ্পত্তির নির্দেশ

ঢাকা অফিস ॥ নিরাপদ সড়কের দাবিতে আন্দোলনের সময় আলোকচিত্রী শহিদুল আলমের বিরুদ্ধে করা তথ্যপ্রযুক্তি আইনের মামলার তদন্ত কার্যক্রম স্থগিত করে হাইকোর্টের জারি করা রুল ১৮ ডিসেম্বরের মধ্যে নিষ্পত্তি করতে বলেছেন আপিল বিভাগ। হাইকোর্টের স্থগিতাদেশের বিরুদ্ধে রাষ্ট্রপক্ষের করা আবেদন নিষ্পত্তি করে গতকাল রোববার প্রধান বিচারপতির নেতৃত্বাধীন আপিল বেঞ্চ এ আদেশ দেন। আদালতে রাষ্ট্রপক্ষে ছিলেন অ্যাটর্নি জেনারেল মাহবুবে আলম। শহিদুল আলমের পক্ষে ছিলেন সাবেক অ্যাটর্নি জেনারেল এএফ হাসান আরিফ। সঙ্গে ছিলেন ব্যারিস্টার জ্যোর্তিময় বড়ুয়া। অ্যাটর্নি জেনারেল বলেন, ১৪ মার্চ হাইকোর্ট বেঞ্চ আদেশ দিয়েছিলেন। এর বিরুদ্ধে আমরা ৪ এপ্রিল লিভ পিটিশন (আপিল বিভাগে আবেদন) করেছি। পরে ব্যারিস্টার জ্যোর্তিময় বড়ুয়া বলেন, বিচারপতি মইনুল ইসলাম চৌধুরীর নেতৃত্বাধীন বেঞ্চে ১৮ ডিসেম্বরের মধ্যে রুল নিষ্পত্তি করতে বলেছেন আপিল বিভাগ। এখন হাইকোর্টের দেওয়া স্থগিতাদেশ বহাল থাকবে। গত ১৪ মার্চ বৃহস্পতিবার বিচারপতি শেখ হাসান আরিফ ও বিচারপতি রাজিক আল জলিলের হাইকোর্ট বেঞ্চ রুলসহ মামলাটির তদন্ত কার্যক্রমের ওপর স্থগিতাদেশ দেন। হাইকোর্টের দেওয়া ওই আদেশ স্থগিত চেয়ে আপিল বিভাগে আবেদন করে রাষ্ট্রপক্ষ। ২৫ মার্চ আপিল বিভাগের অবকাশকালীন চেম্বার বিচারপতি হাসান ফয়েজ সিদ্দিকী এ আবেদন শুনানির জন্য ১১ এপ্রিল পূর্ণাঙ্গ বেঞ্চে পাঠানোর আদেশ দেন। পরে আপিল বিভাগে শুনানি শেষে গতকাল রোববার আদেশ দেন আদালত। গত বছরের ১৫ নভেম্বর বিচারপতি শেখ আবদুল আউয়াল ও বিচারপতি ভীষ্মদেব চক্রবর্তীর হাইকোর্ট বেঞ্চ এ মামলায় আলোকচিত্রী শহিদুল আলমকে জামিন দিয়েছিলেন। এদিকে মামলার বৈধতা নিয়ে হাইকোর্টে মার্চ মাসে আবেদন করেছিলেন শহিদুল আলম। নিরাপদ সড়কের দাবিতে আন্দোলনের সময় গত বছরের ৫ আগস্ট শহিদুল আলমকে বাসা থেকে নেওয়ার পর ‘উস্কানিমূলক মিথ্যা’ প্রচারের অভিযোগে তথ্যপ্রযুক্তি আইনের মামলায় ৬ আগস্ট রিমান্ডে নেয় পুলিশ। এ মামলায় ৬ আগস্ট সিএমএম আদালতে তার জামিন আবেদন নামঞ্জুর হয়েছিলো।

রিফাত শরীফ হত্যা মামলা

হাই কোর্টের আরেকটি বেঞ্চে মিন্নির জামিন আবেদন

ঢাকা অফিস ॥ প্রথম দফায় ব্যর্থ হওয়ার পর হাই কোর্টের আরেকটি বেঞ্চে জামিন আবেদন করেছেন বরগুনার আলোচিত রিফাত শরীফ হত্যা মামলায় তার স্ত্রী আয়শা সিদ্দিকা মিন্নি। গত ৮ অগাস্ট বিচারপতি শেখ মো. জাকির হোসেন ও বিচারপতি মো. মোস্তাফিজুর রহমানের অবকাশকালীন বেঞ্চে শুনানির পর জামিন পাওয়ার আশা না দেখে মিন্নির আইনজীবী জেড আই খান পান্না আবেদনটি ফিরিয়ে নিয়েছিলেন। সে আবেদনটিই গতকাল রোববার বিচারপতি এম ইনায়েতুর রহিম ও বিচারপতি মো. মোস্তাফিজুর রহমানের বেঞ্চে দাখিল করা হয়েছে বলে জানান এই আইনজীবী। আজকে (গতকাল রোববার) আমরা জামিন আবেদনটি কোর্টে সাবমিট করেছি। আগামীকাল (সোমবার) সম্ভবত লিস্টে (কার্যতালিকা) আসবে। লিস্টে আসলেই হেয়ারিং করব। হাকিম আদালতে ১৬৪ ধারায় মিন্নিসহ আসামিদের স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি না আনতে পারলে জামিন হবে না, আদালতের এমন শর্তের পর গত ৮ অগাস্ট আবেদনটি ফিরিয়ে নেওয়া হয়েছিল। এ প্রসঙ্গে আইনজীবী জেড আই খান পান্না বলেন, আমরা ১৬৪ পাইনি। আর এ ধরনের কোনো বাধ্যবাধকতা নেই যে, ১৬৪ নিয়ে আমাকে জামিন আবেদন করতে হবে। চার্জশিট না হলে আমাকে ১৬৪ দেবে কেন পুলিশ। চার্জশিট হওয়ার আগে ১৬৪ দেওয়ার বিধান নেই। গত ২৬ জুন রিফাতকে বরগুনার রাস্তায় প্রকাশ্যে কুপিয়ে হত্যা করা হয়। সে সময় স্বামীকে বাঁচাতে মিন্নির চেষ্টার ভিডিও সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ছড়িয়ে পড়লে সারাদেশে আলোচনার সৃষ্টি হয়। পরদিন রিফাত শরীফের বাবা আবদুল হালিম দুলাল শরীফ ১২ জনকে আসামি করে একটি মামলা করেন; তাতে প্রধান সাক্ষী করা হয়েছিল মিন্নিকে। পরে মিন্নির শ্বশুর তার ছেলেকে হত্যায় পুত্রবধূর জড়িত থাকার অভিযোগ তুলে সংবাদ সম্মেলন করলে ঘটনা নতুন দিকে মোড় নেয়। গত ১৬ জুলাই মিন্নিকে বরগুনার পুলিশ সুপারের কার্যালয়ে ডেকে নিয়ে দিনভর জিজ্ঞাসাবাদের পর এ মামলায় তাকে গ্রেফতার দেখানো হয়। পরদিন আদালতে হাজির করা হলে বিচারক তাকে পাঁচদিনের রিমান্ডে পাঠান। রিমান্ডের তৃতীয় দিন শেষে মিন্নিকে আদালতে হাজির করা হলে সেখানে তিনি স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দেন বলে পুলিশ জানায়। তবে বরগুনা সরকারি কলেজের স্নাতকের এই ছাত্রী পরে জবানবন্দি প্রত্যাহারের আবেদন করেন জ্যেষ্ঠ বিচারিক হাকিম আদালতে। মিন্নির বাবার অভিযোগ, ‘নির্যাতন করে ও ভয়ভীতি দেখিয়ে মিন্নিকে স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দিতে বাধ্য করেছে পুলিশ’। এর পেছনে স্থানীয় প্রভাবশালী রাজনীতিবিদদের হাত আছে বলেও তার দাবি। বরগুনার জ্যেষ্ঠ বিচারিক হাকিম আদালত এবং জেলা ও দয়েরা জজ আদালতে মিন্নির জামিন আবেদন নাকচ হয়ে যাওয়ার পর গত ৫ অগাস্ট হাই কোর্টে জামিন আবেদন করেন তার আইনজীবীরা। পরে গত ৮ অগাস্ট বিচারপতি শেখ মো. জাকির হোসেন ও বিচারপতি মো. মোস্তাফিজুর রহমানের অবকাশকালীন হাই কোর্ট বেঞ্চে আংশিক শুনানির পর জামিন পাওয়ার আশা না দেখে মিন্নির আইনজীবী জেড আই খান পান্না আবেদন ফিরিয়ে নেন। সেদিন আইনজীবী জেড অইন খান পান্না ছাড়াও জামিন আবেদনের পক্ষে শুনানিতে ছিলেন আইনজীবী আইনুন নাহার সিদ্দিকা, মাক্কিয়া ফাতেমা ইসলাম ও জামিউল হক ফয়সাল। রাষ্ট্রপক্ষে শুনানি করেন অতিরিক্ত অ্যাটর্নি জেনারেল মোমতাজ উদ্দিন ফকির। তার সঙ্গে ছিলেন ডেপুটি অ্যাটর্নি জেনারেল রেজাউল করিম।

সুনীল অর্থনীতিকে রক্ষায় সংসদীয় কমিটির তাগিদ

ঢাকা অফিস ॥ পৃথিবীর খাদ্য চাহিদার ৭ ভাগ সমুদ্রের তলদেশে রয়েছে উল্লেখ করে সুনীল অর্থনীতিকে রক্ষার তাগিদ দিয়েছে সংসদীয় কমিটি। কমিটির মতে সমুদ্রসীমা নিশ্চিত হওয়ায় সামুদ্রিক সম্পদ রক্ষায় ব্যবস্থা গ্রহণ করতে হবে। মাছ হচ্ছে প্রধান সামুদ্রিক সম্পদ যা রক্ষা করতে হবে আমাদেরকে। এটা একটা সুনীল অর্থনীতি। এই অর্থনীতিকে রক্ষা করতে হবে। পৃথিবীর খাদ্য চাহিদার ৭ ভাগ সমুদ্রের তলদেশে রয়েছে উল্লেখ করে সুনীল অর্থনীতিকে রক্ষার তাগিদ দিয়েছে সংসদীয় কমিটি। কমিটির মতে সমুদ্রসীমা নিশ্চিত হওয়ায় সামুদ্রিক সম্পদ রক্ষায় ব্যবস্থা গ্রহণ করতে হবে। মাছ হচ্ছে প্রধান সামুদ্রিক সম্পদ যা রক্ষা করতে হবে আমাদেরকে। এটা একটা সুনীল অর্থনীতি। এই অর্থনীতিকে রক্ষা করতে হবে। সম্প্রতি সংসদ ভবনে অনুষ্ঠত মৎস্য ও প্রাণিসম্পদ মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত সংসদীয় স্থায়ী কমিটির ৫ম বৈঠকে এসব কথা বলেন, কমিটির সভাপতি ধীরেন্দ্র দেবনাথ শম্ভু (বরগুনা-১)। ওই বৈঠকে কমিটির সদস্য মো. শহিদুল ইসলাম (বকুল) (নাটোর-১) ও বেগম নাজমা আকতার (মহিলা আসন-৪৬) উপস্থিত ছিলেন। বৈঠকের কার্যবিবরণীতে থেকে জানা যায়, বৈঠকে মৎস্য ও প্রাণিসম্পদ মন্ত্রণালয়ের সচিব রাইসুল আলম মন্ডল বলেন, সমুদ্রে অসংখ্য প্রজাতির মাছ রয়েছে। তবে গবেষণায় ৪৩০ প্রজাতির মাছের সন্ধান পাওয়া গেলেও খাওয়া যাবে এমন প্রজাতির মাছ নিয়ে গবেষণা চলছে। সমুদ্রে প্রায় ১২০ প্রজাতির মাছ রয়েছে যা আমরা বাণিজ্যিকভাবে ব্যবহার করছি। আমাদের বিজ্ঞানিরা এ নিয়ে প্রচুর গবেষণা চালিয়ে যাচ্ছেন। মা মাছ ও ডিমওয়ালা মাছ ধরা থেকে বিরত থাকার জন্য ‘নিষিদ্ধকাল’ নির্ধারণ করা হয়েছে। ওই নির্দিষ্ট সময়ে মাছ না ধরার উপকারিতা সম্পর্কে কমিটিকে অবহিত করেন। বছরে ৬৫ দিন মাছ ডিম দেয়। এই ৬৫ দিন মা মাছ ধরা বন্ধ রাখা গেলে মাছের উৎপাদন বৃদ্ধি হবে। মাছের প্রায় ৩০ প্রজাতি নিয়ে গবেষণা অব্যাহত রয়েছে। সামুদ্রিক মাছ ইলিশকে প্রধান বাণিজ্যিক মৎস্য হিসেবে বিবেচনায় নিয়ে এর উপর বিজ্ঞানিরা প্রচুর গবেষণা চালিয়ে যাচ্ছেন। প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশে এর প্রজনন প্রক্রিয়া, সময়কাল ইত্যাদি নিয়ে গবেষণা অব্যাহত রয়েছে। সামুদ্রিক বিভিন্ন প্রজাতির মাছের মধ্যে রয়েছে স্যাম্পন মাছ ও কড ফিস্। এরপর সভাপতি বলেন, প্রধানমন্ত্রী সমুদ্রসীমা নির্ধারণ করে দিয়েছেন। সমুদ্রসীমা নিশ্চিত হওয়ায় সামুদ্রিক সম্পদ রক্ষায় ব্যবস্থা গ্রহণ করতে হবে। মাছ হচ্ছে প্রধান সামুদ্রিক সম্পদ যা রক্ষা করতে হবে আমাদেরকে। এটা একটা সুনীল অর্থনীতি। এই সুনীল অর্থনীতিকে রক্ষা করতে হবে। পৃথিবীর খাদ্য চাহিদার ৭ ভাগ রয়েছে সমুদ্রের তলদেশে। সামুদ্রিক মৎস্য আহরণের জন্য অধিক গুরুত্ব দিয়ে গবেষণা কার্যক্রম চালিয়ে যাওয়ার জন্য অনুরোধ করেন। এই মন্ত্রণালয়কে আরও অধিক গুরুত্ব দিয়ে কাজ করার জন্য পরামর্শ দেন। তিনি আরো বলেন, মাছ প্রজাতির মধ্যে দুইটি ভাগ রয়েছে। একটি হলো- মিঠা পানির মাছ ও অপরটি লোনা পানির মাছ। লোনা পানির মাছ ও মিঠা পানির মাছ নিয়ে দু’টি আলাদা বিভাগ করা উচিত বলে তিনি মনে করেন। দু’টি বিভাগ নিয়ে আলাদাভাবে গবেষণা করা যেতে পারে। এককভাবে সামুদ্রিক সম্পদ নিয়ে গবেষণা করতে পারলে আরো অনেক সফলতা সম্ভব হবে এবং সামুদ্রিক মাছের উপর আরও অধিকতর গবেষণা করে সামুদ্রিক মাছের প্রজনন বৃদ্ধি করা সহজ হবে। তিনি আরও বলেন, ডিমওয়ালা মাছ ধরা নিষিদ্ধ করার সময়কাল সম্পর্কে আরো বেশি প্রচারণা বাড়াতে হবে। বিভিন্ন প্রচারণা সংস্থা, মৎস্যজীবী সমিতি ও অন্যান্য মাধ্যমে সকলকে অবহিত করতে হবে। ডিমওয়ালা মাছ ধরার সুফল এবং কুফল সম্পর্কে সকলকে বুঝানোর জন্য প্রচুর পরিমাণে প্রচারণা বাড়ানোর অনুরোধ করেন। সচিব বলেন, প্রাণিসম্পদে বাংলাদেশ অনেক সাফল্য অর্জন করেছে। গত দুই বছর কোরবানির জন্য গরু আমদানি করতে হয়নি। দেশের বিভিন্ন খামারে উৎপাদিত গরু দিয়েই কোরবানির গরুর চাহিদা মিটানো সম্ভব হয়েছে। বাংলাদেশের আনাচে-কানাচে প্রচুর গরুর খামার রয়েছে এবং গরু পালন হচ্ছে। দেশি গরুর মাংস স্বাদ বলে এর চাহিদা বেশি। দেশি গরুর উৎপাদন বেশি বিধায় আমদানি করার প্রয়োজন নেই। প্রাণিসম্পদ অধিদফতর এ নিয়ে প্রচুর গবেষণা ও এর বাস্তবায়নে কাজ করছে। ভাল জাতের ষাড় ও গাভী উৎপাদনে প্রচুর গবেষণা চলছে। দেশীয় গাভী থেকে এখন প্রায় ২৫/৩০ কেজি পর্যন্ত দুধ পাওয়া যায় বলে তিনি জানান। সভাপতি বলেন, বিভিন্ন দুর্যোগের সময় কৃষি মন্ত্রণালয় যেভাবে কৃষকদের পাশে দাঁড়ায় সেভাবে এই মন্ত্রণালয়কে গরু খামারী, মৎস্য খামারী, মৎস্যজীবীসহ অন্যান্য সংশ্লিষ্ট পেশাজীবীদের পাশে দাঁড়ালে তারা আরও স্বয়ংসম্পূর্ণ হতে পারবে এবং উৎপাদনে উৎসাহী হবে। বন্যা বা অন্যান্য দুর্যোগে ক্ষতিগ্রস্তদেরকে আর্থিক সাহায্য ও ব্যাংক ঋণসহ অন্যান্য আর্থিক প্রণোদনা দেয়ার ব্যবস্থা গ্রহণের পরামর্শ দেন।

দৌলতপুর প্রেসক্লাবের সাধারণ সভা অনুষ্ঠিত

দৌলতপুর প্রতিনিধি ॥ কুষ্টিয়ার দৌলতপুর প্রেসক্লাবের সাধারণ সভা অনুষ্ঠিত হয়েছে গতকাল রবিবার বেলা ১১টায় দৌলতপুর প্রেসক্লাবের আহ্বায়ক এ্যাড. এমজি মাহমুদ মন্টুর সভাপতিত্বে তার কার্যালয়ে এ সভা অনুষ্ঠিত হয়। সভায় উপস্থিত ছিলেন, দৌলতপুর প্রেসক্লাবের উপদেষ্টা দৈনিক সংবাদের দৌলতপুর প্রতিনিধি প্রবীন সাংবাদিক এম মামুন রেজা, দৌলতপুর প্রেসক্লাবের আহ্বায়ক কমিটির সদস্য সিনিয়র সাংবাদিক দৈনিক সংগ্রাম প্রতিনিধি মোশারফ হোসেন খান, সদস্য ও সিনিয়র সাংবাদিক দৈনিক আজাকাল পত্রিকার দৌলতপুর প্রতিনিধি মো. জাহাঙ্গীর আলম, দৈনিক মানবজমিন ও দৈনিক আন্দোলনের বাজার পত্রিকার দৌলতপুর প্রতিনিধি শরীফুল ইসলাম, দৈনিক নয়াদিগন্ত পত্রিকার দৌলতপুর প্রতিনিধি আহাদ আলী নয়ন, দৈনিক ইনকিলাব পত্রিকার দৌলতপুর প্রতিনিধি মাহফুজুল আলম, দৈনিক ভোরের কাগজের দৌলতপুর প্রতিনিধি এস আর সেলিম, দৈনিক জনকন্ঠের দৌলতপুর প্রতিনিধি সাইদুল আনাম, দৈনিক সমকালের দৌলতপুর প্রতিনিধি আহমেদ রাজু, দৈনিক বাংলাদেশের খবর পত্রিকার দৌলতপুর প্রতিনিধি সাইদুর রহমান, সাংবাদিক আতিয়ার রহমান ও দৈনিক আজকের আলো পত্রিকার দৌলতপুর প্রতিনিধি এস এম জাহিদ হোসেন। সভায় জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ৪৪তম শাহাদত বার্ষিকী ও জাতীয় শোক দিবস উপলক্ষে জাতির পিতাসহ ১৫ আগষ্ট নির্মম হত্যাকান্ডে নিহত সকল শহীদদের প্রতি বিনম্র শ্রদ্ধা জানানো হয় এবং তাঁদের আত্মার শান্তি কামনা করা হয়। এরপর দৌলতপুর প্রেসক্লাবের প্রতিষ্ঠাতা সভাপতি প্রয়াত সাংবাদিক আবেশ আলী, দৌলতপুর প্রেসক্লাবের প্রতিষ্ঠাতা সদস্য প্রয়াত সাংবাদিক নাহারুল ইসলাম মন্টু ও দৌলতপুর প্রেসক্লাবের সদস্য প্রয়াত সাংবাদিক এনামুল হকসহ আরো যেসকল সদস্যবৃন্দ প্রয়াত হয়েছেন তাদেরকে গভীর শ্রদ্ধার সাথে স্মরণ করা হয় এবং তাদের আত্মার শান্তি কামনা করা হয়। সভায় উপস্থিত সকল সদস্যদের মতামতের ভিত্তিতে আগামী সভায় দৌলতপুর প্রেসক্লাবের নির্বাহী কমিটি গঠন সংক্রান্ত সিদ্ধান্ত গ্রহণ করা হয়। তবে দৌলতপুর প্রেসক্লাবের সংস্কার কাজ শেষ হলে প্রেসক্লাব কার্যালয়ে এ সভা অনুষ্ঠিত হবে এমন সিদ্ধান্ত গ্রহণ করা হয়। এছাড়াও দৌলতপুর প্রেসক্লাবে নতুন সদস্য সংগ্রহের বিষয়ে আলোচনা হলে পরবর্তী নির্বাহী কমিটি নির্বাচিত হওয়ার পর দৌলতপুর প্রেসক্লাবের গঠনতন্ত্র মোতাবেক সদস্য সংগ্রহ করার সিদ্ধান্ত গ্রহণ করা হয়। এছাড়াও বেশ কয়েকটি গুরুত্বপূর্ন সিদ্ধান্ত গ্রহণ করা হয়। শেষে সভার সভাপতি এ্যাড. এমজি মাহমুদ মন্টু ঈদ পরবর্তী শুভেচ্ছা জানিয়ে এবং উপস্থিত দৌলতপুর প্রেসক্লাবের সকল সদস্যবৃন্দকে ধন্যবাদ জানিয়ে সভার কাজ শেষ করেন। সভা শেষে দৌলতপুর প্রেসক্লাবের সকল সদস্যবৃন্দ দৌলতপুর থানার ওসি মো. আজম খানের সাথে সৌজন্য স্বাক্ষাত করেন। এসময় সাংবাদিকবৃন্দ ওসি আজম খানের সততার সাথে নিরপেক্ষ ভূমিকা পালনের প্রশংসা করেন। পরে বস্তুনিষ্ঠ সংবাদ পরিবেশনে দৌলতপুর প্রেসক্লাবের দায়িত্বশীল সাংবাদিকদের সার্বিক সহযোগিতার আহ্বান জানানো হলে ওসি আজম খান দৌলতপুর প্রেসক্লাবের সাংবাদিকদের সার্বিক সহযোগিতার আশ^াস দেন।

এফআর টাওয়ারের নকশা জালিয়াতি

কাসেম ড্রাইসেলের এমডি তাসভীর গ্রেফতার

ঢাকা অফিস ॥ বনানীর এফআর (ফারুক-রূপায়ন) টাওয়ারের নকশা জালিয়াতির অভিযোগে দুর্নীতি দমন কমিশনের (দুদক) দায়ের করা মামলায় ভবনটির অন্যতম মালিক ও কাসেম ড্রাইসেলের ব্যবস্থাপনা পরিচালক (এমডি) তাসভীর-উল-ইসলামকে গ্রেফতার করা হয়েছে। গতকাল রোববার বেলা সাড়ে ৩টায় রাজধানীর সেগুনবাগিচা এলাকা থেকে তাকে গ্রেফতার করা হয়। দুদকের উপ-পরিচালক (জনসংযোগ) প্রণব কুমার ভট্টাচার্য এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন। এরআগে, গত ২৫ জুন নকশা জালিয়াতির মাধ্যমে অবৈধভাবে ১৬ তলা থেকে ২৩ তলা ভবন নির্মাণের অভিযোগে এফআর টাওয়ারের মালিক, রাজধানী উন্নয়ন কর্তৃপক্ষের (রাজউক) দুই চেয়ারম্যানসহ ২৩ জনের বিরুদ্ধে পৃথক দু’টি মামলা দায়ের করে দুদক। দুদক উপপরিচালক আবু বকর সিদ্দিক বাদী হয়ে এফআর টাওয়ারের দুদকের সমন্বিত জেলা কার্যালয় ঢাকা-১ মামলা দু’টি দায়ের করেন। প্রসঙ্গত, চলতি বছরের ২৮ মার্চ এফআর টাওয়ারে আগুনের ঘটনায় ২৬ জন নিহত হন। এরপর ভবনটি নির্মাণে ক্রটি, নকশা জালিয়াতি, অনিয়ম ও দুর্নীতির অনুসন্ধানে নামে দুদক। এরই অংশ হিসেবে মামলা হয়। মামলা দু’টি তদন্তের পর বিশেষ জজ আদালতে চার্জশিট দাখিল করা হবে। এরপর শুরু হবে বিচার।

মওদুদ একটা শয়তান – কৃষিমন্ত্রী

ঢাকা অফিস ॥ জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানকে সপরিবারে হত্যার সঙ্গে তৎকালীন সেনা কর্মকর্তা ও বিএনপির প্রতিষ্ঠাতা জিয়াউর রহমান প্রত্যক্ষভাবে জড়িত বলে দাবি করেছেন আওয়ামী লীগের সভাপতিমন্ডলীর সদস্য ও কৃষিমন্ত্রী ড. মো. আবদুর রাজ্জাক। আইনমন্ত্রী থাকাকালে ব্যারিস্টার মওদুদ আহমদ বঙ্গবন্ধু হত্যাকান্ডের বিচারে পদক্ষেপ না নেওয়ায় তাকে ‘এ যুগের শয়তান’ বলেও আখ্যা দেন ড. রাজ্জাক। গতকাল রোববার সচিবালয়ে কর্মকর্তাদের সঙ্গে ঈদুল আজহা পরবর্তী শুভেচ্ছা বিনিময়কালে তিনি এ কথা বলেন। আওয়ামী লীগের এ নেতা বলেন, বঙ্গবন্ধুকে ষড়যন্ত্র করে হত্যা করা হয়। জিয়াউর রহমান সরাসরি বঙ্গবন্ধুর হত্যাকান্ডে সম্পৃক্ত ছিলেন। এটি ছিল একটি প্রতিহিংসার বহিঃপ্রকাশ। বঙ্গবন্ধুর স্বাধীনতার যে চেতনা, সেটি ধ্বংস করে পাকিস্তানের সঙ্গে সম্পর্ক সৃষ্টি করা এ হত্যাকান্ডের কারণ ছিল। বঙ্গবন্ধুর অনেক হত্যাকারী বিভিন্ন দেশে পালিয়ে আছে। ১৯৭৫-এ যে অসৎ উদ্দেশ্য নিয়ে বঙ্গবন্ধুকে হত্যা করা হয়েছিল, ২০০১ সালে বিএনপি ক্ষমতায় আসার পর তা পূরণে কাজ করে সেই সরকার। বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য ব্যারিস্টার মওদুদকে ‘এ যুগের শয়তান’ আখ্যা দিয়ে ড. রাজ্জাক বলেন, ব্যারিস্টার মওদুদ হলেন এদেশের ‘ইভিল জিনিয়াস’ শয়তান। এ শয়তানদের জন্য দেশটা পিছিয়ে গেছে। মওদুদ যখন আইনমন্ত্রী ছিলেন, তখন বঙ্গবন্ধু হত্যার বিচার করেননি। আইন করে বিচার বন্ধ করার পর সে আইন বাতিল করা হয়, তবু এই হত্যাকান্ডের বিচার হয়নি (বিএনপি সরকারের সময়)। আওয়ামী লীগের সর্বোচ্চ নীতি-নির্ধারণী ফোরামের এ নেতা বলেন, যে আদর্শে দেশ স্বাধীন হয়েছিল, সেটি ধরে রাখলে দেশ এগিয়ে যেতো। সেজন্য আওয়ামী লীগকে ক্ষমতায় থাকতে হবে তা নয়। সবার জন্য ন্যায়ভিত্তিক সমাজ গড়ে তুলতে হবে। ঈদযাত্রা প্রসঙ্গে ড. রাজ্জাক বলেন, ঈদযাত্রায় সারাদেশে যাতায়াতে কিছু সমস্যা হয়েছে। তারপরও বাংলাদেশের মানুষ সবকিছুর মধ্যেই আনন্দ করে। সাধারণ মানুষ এর সঙ্গে অভ্যস্ত। তারা এটি মোকাবেলা করে। এর ফলে তাদের আনন্দে ঘাটতি থাকে না। নানা সমস্যার মধ্যেই কাজ করতে হয়। ঈদে যাতায়াতে টাঙ্গাইলে ১০ ঘণ্টা লেগেছে যেতে। অনেকেই এই সমস্যার সম্মুখীন হয়েছেন। কিন্তু আশা করি সবারই ঈদ ভালো হয়েছে। জমিতে মূল ফসল ছিল না তাই এবারের বন্যায় সামান্য ক্ষতি হয়েছে জানিয়ে কৃষিমন্ত্রী বলেন, বীজতলায় কিছুটা ক্ষতি হলেও আমন চাষে তেমন কোনো প্রভাব ফেলবে না। কৃষিমন্ত্রী বলেন, বীজতলায় কিছুটা ক্ষতি হয়েছে। আমরাও মাঠপর্যায়ে বীজতলা তৈরির জন্য মাঠ পর্যায়ে বীজ ও সার দিয়ে সহযোগিতা করছি। এখন পর্যন্ত আবহাওয়ার যা পরিস্থিতি সেটা আমনের জন্য খুবই সহায়ক। আমার বিশ্বাস আমনের যে লক্ষ্যমাত্রা রয়েছে সেটা অর্জন হবে। আশা করি, ভালো ফসল পাবো। আমরা সর্বাত্মক সহযোগিতা করছি। যে সব এলাকায় পানি না নামার জন্য আমন লাগাতে পারবে না। সেসব এলাকায় রবি ফসল উৎপাদনের পর্যাপ্ত পরিমাণ বীজ ও সার দেব। এটি মন্ত্রণালয়ের সিদ্ধান্ত। রবি ফসলে ভুট্টা, আলু, কলাই এবং অন্যান্য শাকসবজির বীজ, সার এবং অন্যান্য উপকরণ কৃষককে সরবরাহ করব। যাতে করে যেসব কৃষক ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছেন তারা যেনো ক্ষতি পুষিয়ে নিতে পারেন। তিনি বলেন, পানি নেমে গেলেই মাসকলাই বুনে দেয়া হয়। ইতোমধ্যে সব এলাকায় মাসকলাইয়ের বীজও আমরা পাঠিয়ে দিয়েছি। আমি সব কর্মকর্তাদের নির্দেশনা দিচ্ছি যে, বন্যার পুনর্বাসনের কাজের কি পরিস্থিতি, ক্ষয়ক্ষতির আলোকে আমরা কি কি করতে পেরেছি সেটি নির্ধারণ করতে হবে। একইসঙ্গে তিনদিনের মধ্যে কৃষিসচিবের কাছে একটা প্রতিবেদন জমা দেবেন। তিনি বলেন, আগেতো ফসল ছিল বৃষ্টি নির্ভর। এখন আর সে অবস্থা নেই। বর্তমানে আমাদের মূল ফসল হয়ে গেছে বোরো। বোরো থেকে আমরা দুই কোটি টন চাল পায়। এ চাল পেতে আমাদের যে কী পরিমাণ মাটির নিচের পানি তুলতে হয় এটা কেউ জানে না। এ পানি রিচার্জ হয় বৃষ্টির পানিতে। তবে শুধু বৃষ্টির পানি পুরো রিচার্জে সক্ষম নয়। এর জন্য বন্যাও প্রয়োজন। বন্যা বাংলাদেশের জন্য কল্যাণ বয়ে আনে, আবার ক্ষতি করে। মন্ত্রী বলেন, আমাদের বাজেট ১২০ কোটি টাকা। প্রধানমন্ত্রী বলেছেন কৃষির জন্য টাকার কোন অভাব হবে না। আর বেশি টাকা লাগলেও দেয়ার নির্দেশ দিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী। চাল রপ্তানির বিষয়ে কৃষিমন্ত্রী বলেন, ফিলিপাইনে চালের দাম বেশি ছিল। তারা চাল আমদানি করেছে প্রায় ১৪ লাখ মেট্রিক টন। ফলে সেখানে চালের দাম কমে গেছে। এখন সে দেশের সরকার সিদ্ধান্ত নিয়েছে চাল রপ্তানি করবে। আমরা চাল রপ্তানি করলে কঠিন অবস্থার মধ্য দিয়ে যেতে হবে। সেজন্য সেদিকে নজর রাখতে হবে।

বঙ্গবন্ধুর ভাস্কর্য উদ্বোধনে মুক্তিযোদ্ধা সাংগঠনিক কমান্ডের বীর মুক্তিযোদ্ধাদের অংশ গ্রহণ

নিজ সংবাদ ॥ কুষ্টিয়া জেলা কালেক্টরেট চত্বরে উদ্বোধন হয়েছে জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান এঁর নব নির্মিত ভাস্কর্য। গত ১৩ আগষ্ট মঙ্গলবার সকালে নব নির্মিত ভাস্কর্যের শুভ উদ্বোধন করেন বাংলাদেশ আওয়ামীলীগ কেন্দ্রীয় কমিটির যুগ্ম-সাধারণ সম্পাদক ও কুষ্টিয়া সদর আসনের সংসদ সদস্য মাহবুবউল আলম হানিফ। এ সময় উপস্থিত ছিলেন দৌলতপুর-১ আসনের সাংসদ আ.ক.ম. সরোয়ার জাহান বাদশা, কুমারখালি-খোকসা-৪ আসনের সাংসদ ব্যারিস্টার সেলিম আলতাফ জর্জ, কুষ্টিয়ার জেলা প্রশাসক আসলাম হোসেন সহ প্রশাসন, রাজনৈতিক নেতৃবৃন্দ, বীর মুক্তিযোদ্ধা ও বিভিন্ন সংগঠনের ব্যাক্তিবর্গ। জেলা প্রশাসনের আমন্ত্রণে উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন জেলা আওয়ামীলীগের মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক সম্পাদক, সাংগঠনিক কমান্ডের কমান্ডার ও মুক্তিযোদ্ধা ইউনিট কমান্ডের সাবেক জেলা কমান্ডার বীর মুক্তিযোদ্ধা মানিক কুমার ঘোষের নেতৃত্বে কুষ্টিয়ার বীর মুক্তিযোদ্ধারা। বঙ্গবন্ধুর আদর্শে আদর্শিত রনাঙ্গন -৭১ এর বীর সেনানী মুক্তিযোদ্ধা মানিক কুমার ঘোষ উদ্বোধনী অনুষ্ঠানের বক্তৃতায় স্বাধীনতা বিরোধীদের সকল প্রকার চক্রান্ত প্রতিহত করে বাংলাদেশের উন্নয়নে মুক্তিযোদ্ধা ও জনগণের কল্যাণে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার হাতকে শক্তিশালি করার আহবান জানান লক্ষ্যে মুক্তিযোদ্ধাসহ সকলকে একতাবদ্ধ থাকার আহবান জানান। মানিক কুমার ঘোষ ভাস্কর্য নির্মাণে জেলা প্রশাসক আসলাম হোসেনর ভূমিকার ভূয়সী প্রশংসা করেন। এর আগে মানিক কুমার ঘোষ উদ্বোধনী অনুষ্ঠানের প্রধান অতিথি বাংলাদেশ আওয়ামীলীগ কেন্দ্রীয় কমিটির যুগ্ম-সাধারণ সম্পাদক ও কুষ্টিয়া সদর আসনের সংসদ সদস্য মাহবুবউল আলম হানিফ, দৌলতপুর-১ আসনের সাংসদ আ.ক.ম. সরোয়ার জাহান বাদশা, কুমারখালি-খোকসা-৪ আসনের সাংসদ ব্যারিস্টার সেলিম আলতাফ জর্জ, কুষ্টিয়ার জেলা প্রশাসক আসলাম হোসেনসহ গন্যমান্য সকলের সাথে ঈদের শুভেচ্ছা ও কুশল বিনিময় করেন। এ সময় উপস্থিত ছিলেন সাংগঠনিক কমান্ডের ডেপুটি কমান্ডার বীর মুক্তিযোদ্ধা মকবুল হোসেন, ডেপুটি কমান্ডার যুদ্ধাহত বীর মুক্তিযোদ্ধা ইকবাল মাসুদ, সদর উপজেলা কমান্ডের সাবেক উপজেলা কমান্ডার শহিদুল হক, সাবেক সহকারী কমান্ডার বীর মুক্তিযোদ্ধা সাইদুর রহমান, সাবেক সহকারী কমান্ডার হাজী শেখ আবু হানিফ, কুমারখালী উপজেলা কমান্ডের সাবেক উপজেলা কমান্ডার যুদ্ধাহত বীর মুক্তিযোদ্ধা নুরুল ইসলাম (নুরু), বীর মুক্তিযোদ্ধা জাহিদ হোসেন, বীর মুক্তিযোদ্ধা এ্যাডঃ শামসুল আলম দুদু, বীর মুক্তিযোদ্ধা রবীন্দ্রনাথ সেন প্রমুখ মুক্তিযোদ্ধা নেতৃবৃন্দ। অন্যান্যের মধ্যে আরও উপস্থিত ছিলেন বীর মুক্তিযোদ্ধা আহসান হাবিব দুলাল, এমদাদুল হক, মহিউদ্দিন, মঈন উদ্দিন, হাজী আতিয়ার রহমান, আবু সাঈদ, আবুল হোসেন, সার্জেন্ট (অব:) সোলাইমান হোসেন, তাইবুর রহমান, আব্দুল মজিদ, খন্দকার লিয়াকত আলী, রিয়াজুল ইসলাম, দুঃখী মন্ডল, নুরুজ্জামান, আব্দুল করিম, বিল¬াল মাস্টার, দেলোয়ার হোসেন, আব্দুল আলিম, নজরুল ইসলাম, শেখ মনির উদ্দিন, শহিদুল ইসলাম মনির, যুদ্ধাহত বীর মুক্তিযোদ্ধা জহুরুল হক, শহিদুল ইসলাম, আক্কাস আলী, ডাক্তার মতিয়ার রহমান, উম্মত আলী, ইয়াছিন আলী, ওমর আলী, শাকের আলী, আবু বকর, শমসের আলী, মহিউদ্দিন, সার্জেন্ট আব্দুল খালেক ও সেক্টর কমান্ডারস ফোরাম কুষ্টিয়ার সেক্রেটারী সাইদুল ইসলাম সিরাজুল এবং মৃত মুক্তিযোদ্ধাদের পৌষ্যগণসহ প্রায় দুই শত মুক্তিযোদ্ধারা উপস্থিত ছিলেন।

সভাপতি হারুন অর রশিদ ॥ সম্পাদক ধনী

আইলচারা ইউনিয়ন মাদক প্রতিরোধ কমিটি গঠন

বাংলাদেশ মাদক প্রতিরোধ কমিটি, আইলচারা ইউনিয়ন শাখা কমিটি গঠন করা হয়েছে। বাংলাদেশ মাদক প্রতিরোধ কমিটি কুষ্টিয়া শাখার সভাপতি হাসিবুর রহমান রিজু ও সাধারণ সম্পাদক এম সোহাগ হাসান স্বাক্ষরিত এক বছর মেয়াদী ৩১ সদস্য বিশিষ্ট এই কমিটির অনুমোদন হয়। কমিটিতে সভাপতি হারুন অর রশিদ, সম্পাদক মনিরুল ইসলাম ধনী ও আমজাদ হোসেনকে সাংগঠনিক সম্পাদক-এর দায়িত্ব দেওয়া হয়েছে।  সংবাদ বিজ্ঞপ্তি

দৌলতপুর সীমান্তে ফেনসিডিল, মদ ও গাঁজা উদ্ধার

দৌলতপুর প্রতিনিধি ॥ কুষ্টিয়ার দৌলতপুর সীমান্তে বিজিবি’র পৃথক অভিযানে ২৩বোতল ভারতীয় ফেনসিডিল, ৪০ বোতল ভারতীয় মদ ও ৪ কেজি গাঁজা উদ্ধার হয়েছে। শনিবার দিবাগত রাত পৌনে ১টার দিকে প্রাগপুর বিওপি’র টহল দল ময়রামপুর মাঠে অভিযান চালিয়ে ২৩ বোতল ভারতীয় ফেনসিডিল ও ৪ কেজি গাঁজা উদ্ধার করেছে। অপরদিকে গতকাল রবিবার সকাল ৮টার দিকে রামকৃষ্ণপুর বিওপি’র টহল দল চল্লিশপাড়া নদীরপাড়ে অভিযান চালিয়ে ৪০ বোতল ভারতীয় মদ উদ্ধার করেছে। তবে উদ্ধার হওয়া মাদকের সাথে জড়িত কেউ আটক হয়নি।

প্রতীতি বিদ্যালয়ের কৃতি শিক্ষার্থীদের সম্বর্ধনায় আতা

প্রতীতি বিদ্যালয় কুষ্টিয়ার শিক্ষা কার্যক্রমে অনন্য অবদান রেখে যাচ্ছে

নিজ সংবাদ ॥ কুষ্টিয়া সদর উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান ও শহর আওয়ামীলীগের  সাধারন সম্পাদক আতাউর রহমান আতা বলেছেন, প্রতীতি বিদ্যালয় কুষ্টিয়ার শিক্ষা কার্যক্রমে অনন্য অবদান রেখে যাচ্ছে, তাদের এই চলার পথে কুষ্টিয়ার সর্বস্তরের মানুষের সাথে আমার সহযোগিতা অব্যাহত থাকবে। তিনি শনিবার দুপুরে  প্রতীতি বিদ্যালয়ের শিক্ষার্থী মিলনায়তনে অনুষ্ঠিত কৃতি শিক্ষার্থীদের সম্বর্ধনা অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে একথা বলেন। প্রতীতি বিদ্যালয়ের পরিচালনা পর্ষদের চেয়ারম্যান প্রফেসর ডঃ ইকবাল হোছাইনের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথির বক্তব্য রাখেন কুষ্টিয়া পৌরসভার প্যানেল মেয়র-২ এবং ৫নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর সাইফ উল হক মুরাদ, ১৯নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর মীর রেজাউল ইসলাম বাবু ও কুষ্টিয়ার চেম্বারের পরিচালক ইঞ্জিনিয়ার সাইফুল আলম মারুফ।

বিদ্যালয়ের শিক্ষক জাহানারা পারভিন রুমা ও সাবেক শিক্ষক ইমারত হোসাইন মিনুর উপস্থাপনায় অনুষ্ঠানের শুরুতে স্বাগত বক্তব্য রাখেন বিদ্যালয়ের প্রিন্সিপাল নজরুল ইসলাম।  শিক্ষকদের মধ্য থেকে বক্তব্য রাখেন ভাইস প্রিন্সিপাল আনিসুর রহমান, সিনিয়র শিক্ষক আব্দুল জলিল, সাবেক শিক্ষক কুমারখালী সরকারী কলেজের প্রভাষক রায়হানা পারভিন, বিদ্যালয়ের সাবেক শিক্ষার্থীদের মধ্য থেকে বক্তব্য রাখেন বাংলাদেশ টেক্সটাইল ইউনিভার্সিটির শিক্ষার্থী আসিফ ইকবাল, রংপুর মেডিকেল কলেজের শিক্ষার্থী রাহুল হোসেন, ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থী ফাহমিদা ফারিহা ও ইবির শিক্ষার্থী রতœা কামাল। অনুষ্ঠানে কবিতা আবৃত্তি করেন ৭ম শ্রেনীর শিক্ষার্থী অদিতি। প্রধান অতিথির বক্তব্যে আতাউর রহমান আতা বলেন, শিক্ষা জাতিকে উন্নতির শিখরে পৌছে দিতে সহায়তা করে। শিক্ষার মাধ্যমে জাতির ভাগ্য উন্নয়ন ঘটে। বর্তমান সরকার শিক্ষাকে অতীব গুরুত্ব দিয়ে এগিয়ে নিতে অগ্রনী ভূমিকা রেখে যাচ্ছে। তিনি আরো বলেন, কুষ্টিয়ার শিক্ষা কার্যক্রমকে ত্বরাম্বিত করে প্রতীতি বিদ্যালয় অগ্রসর ভুমিকায় অবতীর্ণ হয়েছে। বেসরকারীভাবে প্রতিষ্ঠিত এই বিদ্যালয়টি জেলার মানুষের অন্তরে প্রবেশ করতে পেরেছে। তিনি বলেন, আমি জেনেছি এই বিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীদের সাধারন শিক্ষার পাশাপাশি নৈতিক শিক্ষার উপর গুরুত্ব দিয়ে শিক্ষা কার্যক্রম পরিচালিত হয়ে আসছে যা আজকের সমাজের জন্য অত্যন্ত গুরুত্বপুর্ন। তিনি বলেন, প্রতীতি বিদ্যালয়ের যাত্রা পথে আমি তাদের সাথে রয়েছি তাদের যেকোন বিষয়ে সহযোগিতা অব্যাহত থাকবে। তিনি আরো বলেন, আজ সময় এসেছে অভিভাবক ও সচেতন নাগরিকদের ভাবার যে আপনাদের সন্তানদের উপযুক্ত শিক্ষার ভাল পরিবেশে পাঠদানের ব্যবস্থা করা। তিনি বলেন,  প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা শিক্ষার প্রতি জোর দিয়েছেন। তিনি দেশের শিক্ষা কার্যক্রমকে যুগপোযোগী করে গড়ে তুলতে নানামুখি কার্যক্রম হাতে নিয়ে সফলতা দেখিয়েছন।  পরে প্রধান অতিথি সদর উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান আতাউর রহমান আতা কৃতি শিক্ষার্থীদের হাতে ক্রেষ্ট তুলে দেন। কৃতি শিক্ষার্থীদের সম্বর্ধনা উপলক্ষে বিদ্যালয়ের পক্ষ থেকে ‘শেকড়’ নামের একটি স্মরণিকা প্রকাশিত হয়েছে। অনুষ্ঠান শেষে ‘ শেকড়’ স্মরণিকার মোড়ক উম্মোচন করা হয়।

কলকাতায় সড়ক দুর্ঘটনায় নিহত ব্যাংক কর্মকর্তার নিজ বাড়ী খোকসায় দাফন

খোকসা প্রতিনিধি ॥ কলকাতায় সড়ক দুর্ঘটনায় নিহত ব্যাংক কর্মকর্তা ফারহানা ইসলাম তানিয়ার গ্রামের বাড়ি কুষ্টিয়ার খোকসায় তাকে দাফন করা হয়েছে। গতকাল রবিবার বেলা পৌনে ১টার দিকে ব্যাংক কর্মকর্তা ফারহানা ইসলাম তানিয়ার (৩০) লাশবাহী এ্যাম্বুলেন্সটি উপজেলার বেতবাড়িয়া ইউনিয়নের চাঁদট গ্রামে পৌছালে শোকের মাতম শুরু হয়। বাদজোহর গ্রামটির পূর্বপাড়া মসজিদের সামনে মরহুমার নামাজে জানাজা অনুষ্ঠিত হয়। তাকে গ্রামের কবর স্থানে দাফন করা হয়। মেয়ের মৃতদেহ বাড়ি থেকে নিয়ে যাওয়ার পর বিলাপ করছিলেন নিহতের মা খুশি বেগম। চিকিৎসা নেওয়ার জন্য তানিয়া ভারত গিয়েছিল। কিন্তু সুস্থ্য হওয়ার বদলে তাকে লাশ হয়ে ফিরতে হল। রবিবার রাতের ফ্লাইটে তার দেশে ফেরার কথা ছিল। কলকাতার শেকসপিয়ার সরণি ও লাউডন ষ্ট্রিটের সংযোগ সড়কে দুর্ঘটনায় নিহত তানিয়ার মৃতদেহটি রবিবার সকালে বেনাপল স্থল বন্দরদিয়ে বাংলাদেশে ফেরত আনা হয়। সেখানে নিহতের পরিবারের লোকদের কাছে মৃতদেহটি হস্তান্তর করা হয়। নিহতের চাচা উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি ও স্থানীয় ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান বাবুল আকতার জানান, বাবা মা ও একমাত্র ছোট বোনকে নিয়ে ঈদের আগের দিন গ্রামের বাড়ি চাঁদটে আসেন ব্যাংক কর্মকর্তা ফারহানা ইসলাম তানিয়া। ঈদের একদিন পর বুধবার সকালে চিকিৎসার জন্য বেনাপল স্থলবন্দর দিয়ে ভারতে প্রবেশ করে। শুক্রবার গভীর রাতে খাবার খেতে যাওয়ার আগে পরিবারের লোকদের সাথে মোবাইলে তিনি কথা বলেছিলেন। এর কিছু সময় পর খাবার খেয়ে ফেরার পথে শেকসপিয়ার সরণি ও লাউডন ষ্ট্রিটের সংযোগ সড়কে মর্মান্তি সড়ক দুর্ঘটনায় অপর এক বাংলাদেশীর সাথে তানিয়া নিহত হন। ওই রাতেই মোবাইল ফোনে মেয়ে নিহত খবর পান সাবেক সেনা সদস্য বাবা আমিরুল ইসলাম। নিহত ফারহানা ইসলাম তানিয়া সিটি ব্যাংকের গুলশান শাখার সিনিয়র অফিসার পদে কর্মরত ছিলেন। নিহতের বাবা সাবেক সেনা সদস্য আমিরুল ইসলাম বলেন, চিকিৎসার জন্য ব্যাংকের কলিকদের সাথে তানিয়া ভারত গিয়েছিল। দুর্ঘটনার দেড় ঘন্টা আগে মেয়ের সাথে তার শেষ বারের মত কথা হয়। কাজ শেষ করে রবিবার রাতের ফ্লাইটে সে ঢাকায় ফিরবে বলেও জানিয়েছিল।

খালেদা মুক্ত হলে সরকার এক মিনিটও ক্ষমতায় থাকতে পারবে না ঃ ফারুক

ঢাকা অফিস ॥ বেগম খালেদা জিয়া যদি এই মুহূর্তে কারাগার থেকে বের হয়ে মানুষের সামনে উপস্থিত হন তাহলে সরকার এক মিনিটও ক্ষমতায় থাকতে পারবে না। ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগের প্রতি এমন হুঁশিয়ারি উচ্চারণ করেছেন বিএনপি চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা জয়নুল আবদিন ফারুক। তিনি বলেছেন, একটি অসত্য-মিথ্যা মামলায় বিএনপি চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়াকে কারাবন্দি করে রাখা হয়েছে। কারণ সরকার বেগম জিয়াকে ভয় পায়। তারা জানে বেগম জিয়া যদি এই মুহূর্তে কারাগার থেকে বের হয়ে মানুষের সামনে উপস্থিত হন তাহলে তারা (সরকার) এক মিনিটও ক্ষমতায় থাকতে পারবে না। গতকাল রোববার দুপুরে জাতীয় প্রেস ক্লাবের সামনে অপরাজয় বাংলাদেশ নামক একটি সংগঠন আয়োজিত চামড়া শিল্প ধ্বংসকারীদের চিহ্নিত করে দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির দাবিতে এক মানববন্ধনে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন। খালেদা জিয়ার মুক্তির জন্য নেতাকর্মীদের রাজপথে নামার আহ্বান জানিয়ে ফারুক বলেন, এই রাজপথে থাকার অভিজ্ঞতা আমাদের আছে। রাজপথে আমরা বহুবার আন্দোলন সংগ্রাম করেছি। এতিমের চামড়ার টাকা যারা লুট করতে পারে। অতীতের লুটপাটের অভিজ্ঞতা যে সরকারের আছে সেই সরকারের কাছে দাবি করে কোনো লাভ নেই। তাই আসুন রাজপথে নেমে গণতন্ত্রের মা দেশনেত্রী বেগম খালেদা জিয়াকে মুক্ত করি। তিনি আরও বলেন, বেগম জিয়াকে সরকারি সিদ্ধান্তে মুক্ত করা যাবে না। তাই বেগম জিয়াকে যদি মুক্ত করতে হয় তাহলে সকলে মিলে ঐক্যবদ্ধভাবে রাস্তায় নামতে হবে। বেগম জিয়াকে মুক্ত করার জন্য কয়জন প্রাণ দিয়েছেন? কয়টি মামলা খেয়েছেন? আসুন রাস্তায় লড়াই করেন, লড়াই করলে যারা এতিমের চামড়া শিল্পকে ধ্বংস করে দিয়েছে সেই সিন্ডিকেট অটোমেটিকলি আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর নিয়ন্ত্রণে চলে আসবে। এই সরকারের কাছে দাবি করে কোনো ফল পাওয়া যাবে আমি এটা বিশ্বাস করি না। বিএনপিকে মিডিয়া বাঁচিয়ে রেখেছে আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদেরের এমন বক্তব্যের সমালোচনা করে তিনি বলেন, কিছুদিন আগে উনি অসুস্থ ছিলেন। আমরা ওঁর জন্য আল্লাহর কাছে দোয়া করেছিলাম উনি যেন বেঁচে থাকেন। আমরা প্রত্যাশা করেছিলাম তিনি অসুস্থ অবস্থা থেকে ফিরে এসে বিরোধী দলের গঠনমূলক সমালোচনা করবে কিন্তু আমরা কী দেখলাম তার কথাবার্তা সেই আগের মতোই আছে। তার মতো একজন বিজ্ঞ রাজনীতিবিদ যদি বিরোধী দলকে এমন আন্ডার এস্টিমেট করে কথা বলেন এটা কী শোভা পায়? আমি যদি তাকে প্রশ্ন করি আপনাদেরকে আপনাদের রাজনীতি পুলিশ টিকিয়ে রেখেছে। আপনারা তো পুলিশের উপর নির্ভর করে ক্ষমতায় টিকে আছেন। চামড়া শিল্প ধ্বংসকারীদের আইনের আওতায় আনার দাবি জানিয়ে সাবেক এই বিরোধীদলীয় চিফ হুইপ বলেন, চতুর্থ বৈদেশিক মুদ্রা অর্জনকারী চামড়া শিল্প শিল্পকে আজকে কারা; কে সেই ব্যক্তি যারা চামড়া শিল্পকে ধ্বংস করে দিল। দাম না পেয়ে হাজারো চামড়া মাটির নিচে পুঁতে ফেলা হলো। আজকে ৬ দিন হল ঈদ চলে গেছে সরকার যদি সত্যিকার অর্থে জনবান্ধব হতো তাহলে এই গরিবের হকের এতিমের চামড়া লুণ্ঠনকারীদের বিচার হতো। কেন এখনো এই গরিবের টাকা আত্মসাৎ কারীদের খুঁজে বের করা হচ্ছে না। সেটা তো সরকার করবে না কারণ এই সরকার নিশি রাতের সরকার। জনগণের ভোটে নির্বাচিত সরকার নয়। গণতান্ত্রিকভাবে নির্বাচিত সরকার নয়। সে কারণে জনগণের কাছে তাদের কোনো দায়বদ্ধতা নেই। অনির্বাচিত সরকার স্বাস্থ্যখাত, পাটশিল্প, শেয়ারবাজার ধ্বংস করে এখন চামড়াশিল্পকে ধ্বংসের পাঁয়তারা করছে মন্তব্য করে জয়নুল আবদিন ফারুক বলেন, এই সরকারের আমলে সম্মানিত বিচারকদের নিয়েও প্রশ্ন করা হচ্ছে? এই সরকারের আপনজনেরা সিন্ডিকেট করে এতিম-গরিবদের হকের টাকা চামড়া শিল্পকে ধ্বংস করে দিয়ে টাকা আত্মসাৎ করেছে। আয়োজক সংগঠনের সভাপতি খলিলুর রহমান ইব্রাহিম এর সভাপতিত্বে এবং সংগঠনের সাধারণ সম্পাদক ইসমাইল হোসেন সিরাজীর সঞ্চালনায় মানববন্ধনে বিএনপির সহ-সাংগঠনিক সম্পাদক অ্যাডভোকেট আবদুস সালাম আজাদ, কল্যাণ পার্টির ভাইস চেয়ারম্যান সাইদুর রহমান তামান্না, তাঁতী দলের যুগ্ম-আহ্বায়ক ড. কাজী মনিরুজ্জামান মনির, কৃষক দলের আহ্বায়ক কমিটির সদস্য লায়ন মিয়া মোহাম্মদ আনোয়ার প্রমুখ বক্তব্য দেন।

খোকসায় বিএনপির ঈদ পুনর্মিলনী সভা

বিএনপির চেয়ারপার্সন বেগম খালেদা জিয়ার উপদেষ্টা কাউন্সিলের সদস্য জেলা বিএনপির সভাপতি সাবেক এমপি সৈয়দ মেহেদী আহমেদ রুমী বলেছেন, গণতন্ত্র পুনরুদ্ধারের লড়াইয়ে প্রস্তুত হচ্ছেন সর্বস্তরের নেতাকর্মী-সমর্থকরা। প্রতিকুল পরিস্থিতির মধ্যেও বিএনপি তার সাংগঠনিক কার্যক্রম অব্যাহত রেখেছে। নেতাকর্মীরা নির্যাতন-নিপীড়ন সহ্য করেও দুঃশাসনের বিরুদ্ধে সোচ্চার রয়েছে। তিনি বলেন, বিএনপির মূললক্ষ্য খালেদা জিয়ার মুক্তি এবং গণতন্ত্র পুনদ্ধার। তৃণমূলকে সংগঠিত করে আন্দোলন সংগ্রামের মাধ্যমে বেগম জিয়াকে মুক্ত করা হবে। কারণ দেশে সকল গণতান্ত্রিক আন্দোলনের নেতৃত্বে ছিলেন বেগম জিয়া। তার মুক্তি না হলে, দেশে গণতন্ত্র ফিরে আসবে না। আর আমরা  সেই লক্ষ্যে কাজ করছি। রবিবার সকালে খোকসা উপজেলা বিএনপির কার্যালয়ে ঈদ পুনর্মিলনী সভায় সভায় তিনি এ কথা বলেন। খোকসা উপজেলা বিএনপির সভাপতি সৈয়দ আমজাদ আলীর সভাপতিত্বে সভায় আরো উপস্থিত ছিলেন খোকসা উপজেলা বিএনপির সহ-সভাপতি আব্দুল আজিজ, শফি আলম, ভারপ্রাপ্ত সাধারণ সম্পাদক মনিরুজ্জামান কাজল, সাংগঠনিক সম্পাদক মোমিনুর রহমান, খোকসা পৌর বিএনপির সহ-সভাপতি আবুল কালাম, সাধারণ সম্পাদক নাফিজ আহমেদ রাজু, সাংগঠনিক সম্পাদক ইস্তেকবাল চয়ন, জেলা বিএনপির যুগ্ম সম্পাদক মোজাফফরুজ্জামান মিন্টু, যুব বিষয়ক সম্পাদক মেজবাউর রহমান পিন্টু, জেলা ছাত্রদলের সাংগঠনিক  সম্পাদক রোকনুজ্জামান রাসেল প্রমুখ। সংবাদ বিজ্ঞপ্তি

কুষ্টিয়া পৌরসভার কার্যক্রম অব্যাহত

কুষ্টিয়া পৌরসভার  আয়োজনে ডেঙ্গু ও চিকুনগুনিয়া প্রতিরোধে জরুরী বিশেষ সভা অনুষ্ঠিত

গতকাল রবিবার সকালে পৌরসভার ম.আ.রহিম মিলনায়তনে কুষ্টিয়া পৌরসভার মেয়র আনোয়ার আলী’র সভাপতিত্ব্ েডেঙ্গু ও চিকন গুনিয়া প্রতিরোধে এক জরুরী বিশেষ সভা অনুষ্ঠিত হয়েছে। সভাপতির বক্তব্যে মেয়র আনোয়ার আলী বলেন, এডিস মশার বংশবিস্তারের কারণে দেশব্যাপী ডেঙ্গু রোগের প্রাদুর্ভাব দেখা দিয়েছে। ডেঙ্গু রোগ প্রতিরোধ সংক্রান্ত স্থানীয় সরকারের সর্বশেষ নির্দেশনা বাস্তবায়নের নিমিত্ত্বে আলোচনা সভা ও সিদ্ধান্ত গ্রহনের জন্য এই জরুরী বিশেষ  সভা। মেয়র মা-বোনদের উদ্দেশ্যে বলেন, ডেঙ্গু ও চিকুনগুনিয়া প্রতিরোধে আধুনিক পদ্ধতি পাশাপাশি প্রতিটি ঘরে ধুপোচির উপর নিমপাতা ছিটিয়ে প্রতি ঘরে ঘরে ধুপ দেওয়ার অনুরোধ করেন। সেইসাথে প্রতিটি ঘরে একটি নিমপাতা (ডালসহ) ও তুলসি পাতা ঘরের ভেতরে রাখার আহবান জানান। কারণ এতে মশার উপদ্রব কমবে। মেয়র আরো বলেন, গত ২৫ জুলাই হতে পৌরসভার ২১টি ওয়ার্ডে ওয়ার্ড কাউন্সিলর সহ পৌরসভা ও পৌরসভা পরিচালিত বিভিন্ন প্রকল্পের কর্মকর্তা-কর্মচারীবৃন্দ একত্রিত হয়ে তিনটি ফগার মেশিন ও ২১ টি স্প্রে মেশিন দিয়ে এই মশা নিধন কার্যক্রম পরিচালনা করে আসছে। এছাড়াও ওয়ার্ডে ওয়ার্ডে জনসচেতনতামূলক সভা ও লিফলেট বিতরণ কার্যক্রম অব্যাহত রয়েছে। আরোও নতুন ফগার মেশিন ও কীটনাশক ক্রয় করে পৌর এলাকায়  এডিস মশা বংশবিস্তার প্রতিরোধের কাজ করা হবে। এই মশা নিধন কার্যক্রমের সাথে পৌরবাসীর এক হয়ে কাজ করার আহবান জানান ও এই কার্যক্রম পরিচালনার জন্য সকলের সহযোগিতা কামনা করেন। এসময় বক্তব্য রাখেন প্যানেল মেয়র-২ সাইফ-উল-হক মুরাদ, কাউন্সিলর শাহ জালাল, পিয়ার আলী জোমারত, মীর রেজাউল ইসলাম বাবু, হেলাল উদ্দিন, তাসলিমা খাতুন, রীনা নাসরিন ও নির্বাহী প্রকৌশলী রবিউল ইসলাম। এসময় উপস্থিত ছিলেন পৌর কাউন্সিলরবৃন্দ ও  পৌরসভা ও পৌরসভায় পরিচালিত বিভিন্ন প্রকল্পের কর্মকর্তা-কর্মচারীবৃন্দ। সংবাদ বিজ্ঞপ্তি

বঙ্গবন্ধুর ৪৪তম শাহাদাৎ বার্ষিকী উপলক্ষে প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ে মিলাদ

ঢাকা অফিস ॥ জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ৪৪তম শাহাদাৎ বার্ষিকী ও জাতীয় শোক দিবস উপলক্ষে প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ে গতকাল রোববার জোহরের নামাজের পর এক মিলাদ ও দোয়া মাহফিলের আয়োজন করা হয়। প্রধানমন্ত্রীর অর্থনৈতিক সম্পর্ক বিষয়ক উপদেষ্টা ড. মশিউর রহমান, জ¦ালানী উপদেষ্টা তৌফিক-ই-ইলাহী চৌধুরী এবং প্রধানমন্ত্রীর মুখ্য সচিব জাতির পিতার জীবন ও কর্মের ওপর আলোচনা করেন। এ সময় প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের সচিব সাজ্জাদুল হাসানসহ অন্যান্য কর্মকর্তা, কর্মচারীবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন। মিলাদের পর বঙ্গবন্ধু ও ১৫ আগস্টে হত্যাকান্ডের শিকার সকলের রুহের মাগফিরাত কামনা করা হয় এবং দেশের শান্তি, সমৃদ্ধি ও অগ্রগতি কামনা করে বিশেষ দোয়া অনুষ্ঠিত হয়। ইসলামী ফাউন্ডেশনের পরিচালক মুফতি ওয়ালিউর রহমান খান মোনাজাত পরিচালনা করেন।

চামড়ার নজিরবিহীন দরপতনের ঘটনায় বিচারিক তদন্ত চেয়ে রিট, সাড়া দেননি হাইকোর্ট

ঢাকা অফিস ॥ কোরবানির পশুর চামড়ার নজিরবিহীন দরপতনের কারণ খুঁজতে বিচারিক তদন্ত চেয়ে হাইকোর্টে রিট করা হয়েছে। তবে ওই রিট নিয়ে হাইকোর্টের পৃথক দুটি বেঞ্চে শুনানির জন্য গেলে তাতে সাড়া দেননি হাইকোর্টের সংশ্লিষ্ট বেঞ্চ। কোরবানিতে পশুর চামড়ার দরপতন রোধে নিষ্ক্রিয়তা চ্যালেঞ্জ করে বিচারিক তদন্তের নির্দেশনা চাওয়া হয় রিটে। রিটকারী আইনজীবী জানান, সিন্ডিকেট ও একশ্রেণির অসাধু ব্যবসায়ীর কারণে চামড়ার অস্বাভাবিক দরপতন হয়েছে বলে গণমাধ্যমে খবর এসেছে। চামড়াজাত পণ্য দেশের দ্বিতীয় বৃহত্তম রফতানি খাত, যার প্রধান কাঁচামাল হচ্ছে কাঁচা চামড়া। এ অবস্থায় এ শিল্প হুমকির মুখে পড়েছে। এ ঘটনায় জড়িত ব্যক্তি ও প্রতিষ্ঠানের বিরুদ্ধে শাস্তিমূলক ব্যবস্থা গ্রহণের নির্দেশনা চাওয়া হয়েছে রিটে। গতকাল রোববার সকালে সুপ্রিম কোর্টের আইনজীবী ব্যারিস্টার মহিউদ্দিন মো. হানিফ (ফরহাদ) হাইকোর্টের সংশ্লিষ্ট শাখায় এ রিট আবেদন করেন। রিটে বাণিজ্য মন্ত্রণালয়ের সচিব, শিল্প মন্ত্রণালয়ের সচিব, বাংলাদেশ ট্যানার্স অ্যাসোসিয়েশনের চেয়ারম্যান, বাংলাদেশ হাইড অ্যান্ড মার্চেন্টস অ্যাসোসিয়েশনের প্রেসিডেন্টকে বিবাদী করা হয়েছে। রিট আবেদনে চামড়ার অপ্রত্যাশিত দরপতন রোধে বিবাদীদের নিষ্ক্রিয়তা ও ব্যর্থতা কেন অবৈধ হবে না, দরপতনের কারণ খুঁজতে একটি জুডিশিয়াল (বিচারিক) তদন্ত করতে কেন নির্দেশ দেয়া হবে না, দরপতনের সঙ্গে দায়ীদের ব্যবসায়িক নিবন্ধন কেন বাতিল করা হবে না মর্মে রুল জারির আর্জি জানানো হয়। গণমাধ্যমে প্রকাশিত এ-সংক্রান্ত প্রতিবেদন সংযুক্ত করে এ রিট করা হয়েছে বলে জানান ব্যারিস্টার মহিউদ্দিন মো. হানিফ (ফরহাদ)। তিনি বলেন, রিটটি দুটি বেঞ্চে উপস্থাপন করা হলে আদালত শুনানির জন্য তা গ্রহণ করতে অপারগতা প্রকাশ করেছেন। তবে এ বিষয়ে শুনানির জন্য আগামীকাল (আজ সোমবার) অন্য একটি বেঞ্চে উপস্থাপন করা হবে। ‘সরকারের নজরদারি নেই, ব্যবসায়ীদের কারসাজি’ শিরোনামে খবর প্রকাশ করা হয় একটি পত্রিকায়। অপর একটি পত্রিকায় ‘গরিবের হকে সিন্ডিকেটের থাবা’ শীর্ষক প্রতিবেদনে বলা হয়, ‘প্রভাবশালী সংঘবদ্ধ চক্রের কারণে এবার ‘গরিবের হক’ কোরবানির পশুর চামড়ার বাজারে বড় ধস নেমেছে। বাড়তি মুনাফার লোভে ট্যানারি মালিকদের বেশির ভাগই সিন্ডিকেট করে কোরবানির পশুর চামড়া কিনছে না। অল্প যা বিক্রি হয়েছে তা সরকারের বেঁধে দেয়া দামের চেয়ে অনেক কমে, নামমাত্র মূল্যে। এতে চামড়া সংগ্রহকারীরা বিপাকে পড়েছে। চামড়া পচে যাচ্ছে। দুর্গন্ধে নিরুপায় হয়ে অনেকে সংগৃহীত চামড়া রাস্তায় বা নদীতে ফেলে দিচ্ছে। মাটির নিচেও পুঁতে ফেলছে অনেকে। ঈদের পরের দিন মঙ্গলবার থেকে ঢাকা-নারায়ণগঞ্জ লিংক রোডের ফতুল্লার জালকুড়ির ক্রিকেট স্টেডিয়ামের পাশের রাস্তায় কয়েক হাজার কোরবানি পশুর চামড়া পড়ে থাকতে দেখা যায়। সিলেট সিটি কর্পোরেশনের বিভিন্ন এলাকায় ফেলে রাখা অন্তত ২০ ট্রাক চামড়া ডাম্পিং স্পটে পুঁতে ফেলা হয়েছে। এ ছাড়া সিলেটের বিভিন্ন উপজেলায় আরও অন্তত ২৫০ পশুর চামড়া নদীতে ফেলে দেয়ার খবর পাওয়া গেছে। সুনামগঞ্জের জগন্নাথপুর উপজেলার সৈয়দপুর হাফিজিয়া হোসেনিয়া দারুল হাদিস কর্তৃপক্ষ পুঁতে ফেলেছে নষ্ট হয়ে যাওয়া ৯০০ চামড়া। কোথাও মাত্র ৫০ টাকায় গরুর চামড়া বিক্রির ঘটনাও ঘটেছে। আবার ন্যায্য দামে চামড়া কিনে আড়তদারদের কাছ থেকে প্রত্যাশিত দাম না পাওয়ায় বিপাকে পড়েছেন ময়মনসিংহ, নেত্রকোণা, সুনামগঞ্জ, সিলেট, নারায়ণগঞ্জ, চট্টগ্রামসহ বেশ কয়েকটি জেলার মৌসুমী ব্যসায়ীরা। ঢাকা ও ঢাকার বাইরের বিভিন্ন এলাকায় খোঁজ নিয়ে জানা যায়, কোরবানির পশুর যে চামড়া দুই-আড়াই হাজার টাকা বিক্রি হতো, এবার তা বিক্রি করতে হয়েছে ৫০ থেকে ৩০০ টাকায়। ক্রেতার ঘাটতি থাকায় দাম নির্ধারণ ছাড়াই ট্যানারি মালিক এবং ব্যবসায়ীদের কাছে চামড়া দিয়ে দিতে বাধ্য হয়েছে রাজধানীর মসজিদ ও মাদরাসা কর্তৃপক্ষ। কোরবানির চামড়ার এ দশা নিয়ে নগরবাসী, জনপ্রতিনিধি, মৌসুমী ব্যবসায়ী এবং মসজিদ-মাদরাসার নেতাদের মধ্যে বিরাজ করছে ক্ষোভ। চামড়ার ন্যায্য মূল্য না পাওয়ায় এতিম ও দরিদ্র শিক্ষার্থীদের পড়ালেখায় নেতিবাচক প্রভাব পড়ার আশঙ্কা করছেন অনেকে। রাজধানীর দুই সিটি কর্পোরেশনের তথ্য অনুযায়ী, উত্তরের এলাকায় আড়াই লাখের মতো পশু কোরবানি করা হয়েছে গত সোমবার। এ ছাড়া মঙ্গল ও বুধবার আরও ৩০ হাজারের মতো কোরবানি করা হয়েছে। একই সঙ্গে ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশন এলাকায় এবার দুই লাখের মতো পশু কোরবানি করা হয়েছে। এরপর দুই দিনে আরও ৫০ হাজারের মতো পশু কোরবানি দেয়া হয়েছে। তিন বছর আগেও পাঁচ লাখ পশুর চামড়া গড়ে দুই হাজার টাকা দরে বিক্রি করে ১০০ কোটি টাকার বেশি অর্থ পাওয়া যেতো। এ অর্থ মসজিদ, মাদরাসা, এতিম ও গরিব মিসকিনদের দান করা হতো। কিন্তু মৌসুমী ব্যবসায়ীরা এবার রাজধানীতে চামড়া প্রতি গড়ে ২০০- ৩০০ টাকার বেশি দিতে রাজি হয়নি। ছাগলের চামড়া ১০ টাকার বেশিতে নিতে চাননি। রাজধানীর কোনো কোনো এলাকায় মৌসুমী ক্রেতাদের না পাওয়ায় দামদর ঠিক না করেই চামড়া আড়তদারদের দিয়ে দেয়া হয়েছে। ফলে চামড়া বিক্রি বাবদ কত টাকা আসবে সে ব্যাপারে কিছুই জানেন না বিক্রেতারা। এদিকে চামড়ার বাজারে ধস নামার পেছনে ব্যবসায়ীদের কারসাজি আছে বলে অভিযোগ করেছেন খোদ বাণিজ্যমন্ত্রী টিপু মুনশি। গত বুধবার রংপুরের শালবন এলাকায় নিজ বাসভবনে সাংবাদিকদের সামনে এ অভিযোগ করেন তিনি। চামড়ার এমন দশা হওয়ায় বাণিজ্য মন্ত্রণালয় ঈদের পরদিনই জরুরি বৈঠক করে কাঁচা চামড়া রপ্তানির অনুমতি দেয়, যাতে কোরবানির চামড়া সংগ্রহকারীরা ন্যায্যমূল্য পান। কিন্ত, তাতে আপত্তি তুলেছেন ট্যানারি মালিকরা।

অতিরিক্ত ডিআইজি হলেন ২০ এসপি

ঢাকা অফিস ॥ পুলিশ সুপার (এসপি) পদমর্যাদার ২০ কর্মকর্তাকে অতিরিক্ত ডিআইজি পদে পদোন্নতি প্রদানপূর্বক পদায়ন করেছে স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়। গতকাল রোববার স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের জননিরাপত্তা বিভাগের পুলিশ অধিশাখা-১ এর উপসচিব ধনঞ্জয় কুমার দাস স্বাক্ষরিত এক প্রজ্ঞাপনে পদোন্নতির এই আদেশ দেওয়া হয়। অতিরিক্ত ডিআইজি পদে পদোন্নতি প্রাপ্ত ২০ পুলিশ কর্মকর্তা হলেন- নৌ পুলিশ ঢাকার অতিরিক্ত ডিআইজি (চলতি দায়িত্বে) মো. হাবিবুর রহমান, রাজশাহী মহানগর পুলিশের উপ-পুলিশ কমিশনার (ডিসি) তানভীর হায়দার চৌধুরী, খুলনা মহানগর পুলিশের উপ-পুলিশ কমিশনার (ডিসি) এসএম ফজলুর রহমান, পুলিশ হেডকোয়ার্টার্সের সহকারী পুলিশ মহাপরিদর্শক (এআইজি) মো. কামরুল আহসান, এসবির বিশেষ পুলিশ সুপার (এসএসপি) প্রলয় চিসিম, এসবির বিশেষ পুলিশ সুপার (এসএসপি) এসএম আইনুল বারী, বরিশাল মহানগর পুলিশের উপ-পুলিশ কমিশনার (ডিসি) হাবিবুর রহমান খান, পিবিআই’র পুলিশ সুপার (এসপি) মো. আবুল কালাম আজাদ, নওগাঁ জেলার পুলিশ সুপার (এসপি) মো. ইকবাল হোসেন, শিল্পাঞ্চল পুলিশ ঢাকার পুলিশ সুপার (এসপি) মো. গোলাম রউফ খান, টিঅ্যান্ডআইএম ঢাকার পুলিশ সুপার (এসপি) মো. শফিকুল ইসলাম, পুলিশ হেডকোয়ার্টার্সের সহকারী পুলিশ মহাপরিদর্শক (এআইজি) শামীমা বেগম, ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশের উপ-পুলিশ কমিশনার (ডিসি) সালমা বেগম, ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশের উপ-পলিশ কমিশনার (ডিসি) মিরাজ উদ্দিন আহম্মেদ, নৌ পুলিশ ঢাকার পুলিশ সুপার (এসপি) একেএম এহসান উল্লাহ, ঢাকা জেলার পুলিশ সুপার (এসপি) শাহ মিজান শাফিউর রহমান, টিঅ্যান্ডআইএম ঢাকার পুলিশ সুপার (এসপি) মোহাম্মদ তবারক উল্লাহ, সিআইডি ঢাকার পুলিশ সুপার (এসপি) মোল্যা নজরুল ইসলাম, ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশের উপ-পুলিশ কমিশনার (ডিসি) এস. এম. মোস্তাক আহমেদ খান ও চাঁদপুর জেলার পুলিশ সুপার (এসপি) জিহাদুল কবির। অন্য আরেকটি প্রজ্ঞাপনে অতিরিক্ত ডিআইজি পদে পদোন্নতিপ্রাপ্ত ২০ কর্মকর্তাদের বিভিন্ন স্থানে বদলি বা পদায়ন করা হয়েছে।

উপজেলা চেয়ারম্যান আতাউর রহমানের শোক

কুষ্টিয়া জেলা ছাত্রলীগের সাবেক ভারপ্রাপ্ত সাধারন সম্পাদক আল ফিরোজ হরলেনের মৃত্যুতে গভীর শোক ও শোক সন্তপ্ত পরিবারের সদস্যদের প্রতি সমবেদনা জ্ঞাপন করেছেন কুষ্টিয়া সদর উপজেলা চেয়ারম্যান আতাউর রহমান আতা। তিনি এক শোক বার্তায় জানান আল ফিরোজ হরলেন ছিলেন ছাত্ররাজনীতির প্রাণপুরুষ, অতি পরিচিত মুখ। দলের দু:সময়ে তিনি গুরুত্বপূর্ণ অবদান রেখেছিলেন। বিএনপি-জামায়াত জোট সরকারের দু:শাসনের প্রতিবাদ করতে গিয়ে বহুবার কারাবরণ করেন। স্বৈরাচার এরশাদ বিরোধী আন্দোলনেও তিনি সামনের সারিতে নেতৃত্ব দিয়েছেন। তার অকাল মৃত্যু দলের জন্য অপুরণীয় ক্ষতি। তার মৃত্যুতে গভীর শোক ও শোক সন্তপ্ত পরিবারের সদস্যদের প্রতি সমবেদনা জ্ঞাপন করছি।