মিরপুর পৌরসভার উদ্যোগে মশক নিধন অভিযান

আমলা অফিস ॥ কুষ্টিয়ার মিরপুর পৌরসভার উদ্যোগে মশক নিধন ও পরিষ্কার পরিচ্ছন্নতা অভিযান পরিচালনা করা হয়েছে। পৌর এলাকার বিভিন্ন স্থানে এ কার্যক্রম পরিচালিত হয়। গতকাল মঙ্গলবার সকালে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে চত্বরে এ কার্যক্রমের উদ্বোধন করেন পৌর মেয়র হাজী এনামুল হক। এ সময়ে উপস্থিত ছিলেন উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডাঃ সেলিম হোসেন ফরাজী, পৌরসভার প্যানেল মেয়র জমির উদ্দিন, মিনারা খাতুন, কাউন্সিলর জাহিদ হোসেন, নাসির উদ্দিন টোকন, আব্দুস সালাম, আতিয়ার প্রামানিক, আশরাফুল গণি সান্টু, হালিমা বেগম, লাকী খাতুন প্রমুখ। ডেঙ্গু প্রতিরোধে ফগার মেশিন দিয়ে বিষ ¯েপ্র ও জঙ্গল কেটে পরিষ্কার করা হয়।

পোড়াদহ কলেজে মতবিনিময় সভা অনুষ্ঠিত

আব্দুল কুদ্দুস ॥ কুষ্টিয়ার মিরপুর উপজেলার পোড়াদহ কলেজে ছাত্র-ছাত্রী ও অভিভাবকদের নিয়ে এক মতবিনিময় সভা অনুষ্ঠিত হয়েছে। পোড়াদহ কলেজের আয়োজনে গতকাল সকাল ১০টার সময় কলেজ হল রুমে ডেঙ্গু, জঙ্গি, মাদক, ইভটিজিং ও গুজব প্রতিরোধে করনীয় শীর্ষক এই মতবিনিময় সভার আয়োজন করা হয়। সভায় সভাপতিত্ব করেন কলেজের অধ্যক্ষ অন্নদা প্রসাদ মোহান্ত। ইংরেজি বিভাগের সহকারী অধ্যাপক মোশাররফ হোসেন আলোর সঞ্চালনায় সভায় প্রধান আলোচক হিসেবে উপস্থিত ছিলেন মিরপুর উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা কর্মকর্তা জুলফিকার হায়দার। প্রধান অতিথি ছিলেন পোড়াদহ ইউনিয়ন আওয়ামীলীগের সভাপতি বীর মুক্তিযোদ্ধা মোশারফ হোসেন। বিশেষ অতিথি ছিলেন আহম্মদপুর ক্যাম্পের আইসি মোঃ সোলায়মান। এ সময় উপস্থিত ছিলেন কলেজের প্রতিষ্ঠাতা সদস্য ইব্রাহিম খলিলসহ কলেজের সকল শিক্ষক, ছাত্র- ছাত্রী ও অভিভাবকবৃন্দ। সভায় বক্তারা, বর্তমানে দেশে বিদ্যমান সমস্যা ডেঙ্গু, জঙ্গি, মাদক, ইভটিজিং ও গুজবেরর নানা দিক নিয়ে ছাত্র-ছাত্রী এবং অভিভাবকদের মাঝে আলোচনা করেন। আর এগুলো সামাজিক আন্দোলন গড়ে তুলে প্রতিহত করার আহবান জানান। সভা শেষে আগত অতিথিরা ডেঙ্গু রোগ থেকে বাচার জন্য কলেজের শিক্ষক, ছাত্র-ছাত্রী ও অভিভাবকদের নিয়ে কলেজকে এডিস মশামুক্ত করার লক্ষে কলেজের আঙ্গিনা পরিস্কার পরিছন্নতা অভিযান চালায়।

ডাঃ তোফাজ্জুল হেলথ্ সেন্টার, ডাঃ লিজা-ডাঃ রতন ম্যাটস্ ও ডাঃ লিজা নার্সিং’র যৌথ উদ্যোগ ডেঙ্গু প্রতিরোধে সচেতনতা মূলক কর্মসূচী

গতকাল ডাঃ তোফাজ্জুল হেলথ্ সেন্টার, ডাঃ লিজা-ডাঃ রতন ম্যাটস্ ও ডাঃ লিজা নার্সিং ইনস্টিটিউটের যৌথ উদ্যোগে কুষ্টিয়া এন এস রোড সংলগ্ন প্রতিষ্ঠানে ও এর আশেপাশে ডেঙ্গু  প্রতিরোধে সচেতনতা মুলক কর্মসূচীর আয়োজন করা হয়েছে। উক্ত কর্মসূচীতে ডাঃ তোফাজ্জুল হেলথ সেন্টারের স্বত্ত্বাধীকারী ডাঃ এ এফ এম আমিনুল হক রতন, ডাঃ লিজা-ডাঃ রতন ম্যাটস্ এর চেয়ারম্যান ডাঃ আসমা জাহান লিজা সহ উক্ত প্রতিষ্ঠান সমুুুহের কর্মকর্তা, কর্মচারী ও ছাত্র-ছাত্রী ছাড়াও এলাকার বিভিন্ন গণ্যমান্য ব্যক্তিবর্গ উপস্থিত ছিলেন। পরিচ্ছন্নতা কর্মসুচী সকাল ১০ টায় প্রতিষ্ঠানের নিজস্ব ভবন ও এর আশেপাশের এলাকা পরিস্কার করার মাধ্যমে শুর হয় এবং দুপর ১ টা ৩০ মিনিটে সচেতনতা মুলক র‌্যালীর মধ্য দিয়ে শেষ হয়। কর্মসূচীতে উপস্থিত বক্তারা বলেন ডেঙ্গু বর্তমানে সবচেয়ে ভয়াবহ প্রাকৃতিক দুর্যোগ হলেও নিজেরা একটু সচেতন হওয়ার মাধ্যমে খুব সহজেই এই দুর্যোগ মোকাবেলা করা সম্ভব। ডেঙ্গু একটি ভাইরাস জ্বর আর এই ভাইরাস বহন করে এডিস নামক একটি মশা। এই এডিস মশা আমাদের আশেপাশে জমে থাকা পরিস্কার পানিতে বংশ বিস্তার করে। এর জন্য আমাদের আশেপাশের এলাকায় জমে থাকা জমে থাকা পানির স্থান যেমন ডাবের খোলা, মাটির পাত্র, গাড়ির পরিত্যাক্ত টায়ার, এসি অথবা ফ্রীজের পানির পাত্র, পশু পাখির খাবার পানির পাত্র ইত্যাদি প্রতিনিয়ত পরিস্কার রাখতে হবে। অন্তত প্রতি তিন দিন অন্তর অন্তর জমে থাকা পানি ফেলে দিতে হবে। সেই সাথে ময়লা আবর্জনা নির্দিষ্ট স্থানে ফেলতে হবে। কেবলমাত্র পরিস্কার পরিচ্ছন্ন থাকায় ডেঙ্গু প্রতিরোধের একমাত্র হাতিয়ার। সুতরাং আমরা সকলে সচেতন হব এবং ডেঙ্গু মুক্ত সুন্দর পরিবেশে বসবাস করবো। ডাঃ এ এফ এম আমিনুল হক রতন বলেন যেহেতু এডিস মশা দিনের বেলায় কামড়ায় সুতরাং দিনের বেলায় বিশ্রাম নেওয়ার সময় অবশ্যই মশারি ব্যবহার করতে হবে। আর জ্বর দেখা দিলে অযথা আতঙ্কিত না হয়ে চিকিৎসকের পরামর্শ নিয়ে রক্তের পরীক্ষা করতে হবে। বর্তমানে সরকার নির্ধারিত মূল্যে সরকারি/বেসরকারি প্রতিষ্ঠান সমুহে  ডেঙ্গুর পরিক্ষা হচ্ছে। সুতরাং সঠিক সময়ে সঠিক চিকিৎসা করালে ডেঙ্গু রোগী সম্পুর্ন রুপে সুস্থ হয়ে যাবে। সংবাদ বিজ্ঞপ্তি

ডেঙ্গু নিয়ন্ত্রণে আসেনি – কাদের

ঢাকা অফিস ॥ ঢাকায় আওয়ামী লীগের ডেঙ্গুবিরোধী প্রচারণা ও পরিচ্ছন্নতা কর্মসূচিতে নেতাকর্মীদের যথাযথ সাড়া না পেয়ে হতাশা প্রকাশ করে দলের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের বলেছেন, এভাবে ‘লোক দেখানো’ কর্মসূচি পালনের কোনো প্রয়োজন নেই। ঢাকায় যে ডেঙ্গু রোগীর সংখ্যা প্রতিদিনই বাড়ছে, সে কথা মনে করিয়ে দিয়ে তিনি বলেছেন, “আমরা যতটাই মুখে নিয়ন্ত্রণের কথা বলি না কেন, এখনও এটা নিয়ন্ত্রণে আসেনি। এটা হল বাস্তবতা।” গতকাল মঙ্গলবার আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে দলের এক বর্ধিত সভায় ওবায়দুল কাদের এ সব কথা বলেন। গত শুক্রবার আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় কার্যালয়ের সামনে ডেঙ্গু বিষয়ে সচেতনতামূলক লিফলেট বিলি এবং মশক নিধন কার্যক্রমে অংশ নিয়ে ওবায়দুল কাদের বলেছিলেন, এ বিষয়ে সরকারের আন্তরিকতার ‘অভাব নেই’। ডেঙ্গু নিয়ন্ত্রণে সেদিন সবাইকে ধৈর্য্য ধরতে অনুরোধ করেছিলেন তিনি। কিন্তু ঢাকায় ওয়ার্ড পর্যায়ে আওয়ামী লীগের ‘দায়সারা’ কর্মসূচি নিয়ে মঙ্গলবার অসন্তোষ প্রকাশ করেন ওবায়দুল কাদের। তিনি বলেন, দলের সভাপতি প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নির্দেশে সারা দেশে পরিচ্ছন্নতা কর্মসূচি ঘোষণা করেছে আওয়ামী লীগ। সে অনুযায়ী ঢাকার তিন জায়গায় কেন্দ্রীয়ভাবে কর্মসূচি পালনও করা হয়েছে। কিন্তু সব ওয়ার্ডে তা হচ্ছে না। “আমরা নামকাওয়াস্তে দু-চার জায়গায় কর্মসূচি পালন করলাম, বেশিরভাগ ওয়ার্ডে এই পরিচ্ছন্নতা অভিযান পরিচালনা হল না, কর্মসূচি পালন হল না। এই দায়সারা কর্মসূচির কোনো প্রয়োজন নেই। “এতে এডিস মশার প্রজনন ক্ষেত্র ধ্বংস হবে না, এডিস মশার উৎসমুখ আমরা বন্ধ করতে পারব না। এবং ডেঙ্গু জ্বরের যে ভয়ঙ্কর বিস্তার এই বিস্তারও আমরা রোধ করতে পারব না।” আসন্ন কোরবানির ঈদে বহু মানুষ ঢাকা থেকে গ্রামে যাবে এবং তাতে ঢাকার বাইরে ডেঙ্গু ছড়ানোর শঙ্কা যে আরও বাড়বে- সে কথা মনে করিয়ে দিয়ে কাদের বলেন, “অনেকেই যাচ্ছেন, যাবেন। এখানেও এই ডেঙ্গু জ্বরের বিস্তারের একটা আশঙ্কা আছে। রাজনৈতিক দল হিসেবে আমাদের প্রথম কাজটি হচ্ছে এই সচেতনতা এবং সতর্কতা প্রচার করা। এই মশার প্রজনন ও বংশ বিস্তার বন্ধের পূর্বশর্ত হচ্ছে পরিষ্কার পরিচ্ছন্নতা।” ডেঙ্গু পরিস্থিতি মোকাবেলায় পরিচ্ছন্নতা অভিযান কর্মসূচি অব্যাহত রাখতে ওয়ার্ড কাউন্সিলর ও আওয়ামী লীগের নেতাকর্মীদের প্রতি আহবান জানান ওবায়দুল কাদের। তিনি বলেন, ‘পরিচ্ছন্নতা অভিযানে ওয়ার্ড সভাপতি- সাধারণ সম্পাদকরা কাউন্সিলদের সহযোগিতা করবেন। এডিস মশা ভয়ংকর। এডিস মশা কামড় দিতে চেহারার দিকে তাকাবে না। সুযোগপেলে সবাইকে কামড়াবে, রক্ত খাবে। সবাইকে সচেতন হতে হবে, সাবধান থাকতে হবে। আমাদের পরিচ্ছন্নতা অভিযান অব্যহত রাখতে হবে।’

তিনি বলেন, প্রধানমন্ত্রী জানতে চেয়েছেন কয়টা ওয়ার্ডে পরিচ্ছন্নতা কর্মসূচি পালন করা হয়েছে। আমরা দেখতে চাই ঢাকার কয়টা ওয়ার্ডে এই কর্মসূচি পালন করা হয়। পরিচ্ছন্নতা কর্মসূচি একদিন করলে হবে না। প্রতিদিনই করতে হবে। যেসব ওয়ার্ডে পরিচ্ছন্নতা অভিযান শুরু করেননি তারা শুরু করবেন, যারা করেছেন তারা এই পরিচ্ছন্নতা অভিযান অব্যাহত রাখবেন। ‘মিডিয়া না থাকলে সরকার ডেঙ্গুকে গুজব বলে চালিয়ে দিত’ বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীরের এমন বক্তব্যের জবাবে কাদের বলেন, মিডিয়া না থাকলে বিএনপি’র মত বড় দল খুঁজে পাওয়া যেত না। তারা আন্দোলন নির্বাচন সবক্ষেত্রেই ব্যর্থ, তারা ডেঙ্গু প্রতিরোধে নেই, তারা বন্যার্তদের পাশেও দাঁড়ায়নি। তারা শুধু মুখে মুখে দায়িত্ব পালন করে। তাদের আবাসিক প্রতিনিধি বসে বসে সাংবাদিক সম্মেলন করে। এজন্য মিডিয়া না থাকলে তাদের অস্তিত্ব খুঁজে পাওয়া যেত না। সভায় আওয়ামী লীগের যুগ্ম-সাধারণ সম্পাদক মাহবুব উল আলম হানিফ ও জাহাঙ্গীর কবির নানক, সাংগঠনিক সম্পাদক আ ফ ম বাহাউদ্দীন নাছিম ও এনামুল হক শামীম, তথ্য ও গবেষণা বিষয়ক সম্পাদক এডভোকেট আফজালহোসেন, কেন্দ্রীয় কমিটির সদস্য কামরুল ইসলাম ও এস এম কামালহোসেন, ঢাকা মহানগর উত্তর আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক সাদেক খান, দক্ষিণ আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক শাহে আলম মুরাদ, সংসদ সদস্য হাজীসেলিম প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন।

দৌলতপুর শিল্পকলা একাডেমির আয়োজনে বিশ্বকবি রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরের ৭৮তম প্রয়ান দিবস পালন

দৌলতপুর প্রতিনিধি ॥ কুষ্টিয়ার দৌলতপুর শিল্পকলা একাডেমির আয়োজনে বিশ্বকবি রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরের ৭৮তম মহাপ্রয়াণ দিবস পালন করা হয়েছে। এ উপলক্ষে গতকাল মঙ্গলবার বিকেল ৫টায় দৌলতপুর উপজেলা শিল্পকলা একাডেমি মিলনায়তনে সংক্ষিপ্ত আলোচনা সভা, নৃত্য ও রবীন্দ্র সংগীত পরিবেশিত হয়। দৌলতপুর শিল্পকলা একাডেমির সাধারণ সম্পাদক সরকার আমিরুল ইসলামের নেতৃত্বে দৌলতপুর শিল্পকলা একাডেমির শিল্পিবৃন্দ নৃত্য ও সংগীত পরিবেশন করে। এরআগে কবি গুরু রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরের স্মৃতির প্রতি শ্রদ্ধা জানিয়ে সংক্ষিপ্ত আলোচনায় অংশ নেন দৌলতপুর শিল্পকলা একাডেমির সাধারণ সম্পাদক সরকার আমিরুল ইসলাম।

গাংনীতে ডেঙ্গু প্রতিরোধে সমবায় সমিতির মাধ্যমে জনসচেতনতা সৃষ্টির লক্ষ্যে মতবিনিময় সভা

গাংনী প্রতিনিধি ॥ ‘সমবায়ই শক্তি সমবায়ই মুক্তি’ এই শ্লোগানকে সামনে রেখে গাংনী উপজেলার সমবায় সমিতির মাধ্যমে ডেঙ্গু প্রতিরোধে জনসচেতনতা সৃষ্টির লক্ষ্যে মতবিনিময় সভা অনুষ্ঠিত হয়েছে। গতকাল মঙ্গলবার সকাল ১১ টার সময় উপজেলা পরিষদ সভাকক্ষে উপজেলা সমবায় কার্যালয়ের আয়োজনে এবং সমবায়ীদের অংশগ্রহনে  জনসচেতনতা  সৃষ্টির লক্ষে মতবিনিময় অনুষ্ঠিত হয়। উপজেলা সমবায় অফিসার মিরন কুমার দাশের সভাপতিত্বে সভায় প্রধান অতিথি ছিলেন বিশেষ অতিথি ছিলেন উপজেলা পরিষদের ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান ফারহানা ইয়াসমিন, গাংনী উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সেও মেডিকেল অফিসার ডা. শাকিলা আফরোজ প্রমুখ। অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি সুখময় সরকার সমবায়ীদের উদ্দেশ্য করে বলেন, ডেঙ্গু রোগ মারাত্মক রোগ। ডেঙ্গু মশা যেন বিস্তার রোধ করা যায় সেজন্য আপনারা প্রত্যেকে নিজের বাড়ীর আশপাশ পরিস্কার করবেন। তারপর প্রতিবেশী, সমাজের লোকজনকে উদ্বুদ্ধ করবেন।

আড়িয়া ইউপি চেয়ারম্যান বিপ্লবের পিতা আবুল কাশেম আর নেই

আমলা অফিস ॥ কুষ্টিয়ার দৌলতপুর উপজেলার আড়িয়া ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান সাঈদ আনছারী বিপ্লব ও কুষ্টিয়া জেলা ছাত্রলীগের সহ- সভাপতি তাসফিন আব্দুল্লাহ’র পিতা বিশিষ্ট সমাজ সেবক হাজী আবুল কাশেম (৯৫) আর নেই। সোমবার দিবাগত রাত দুইটার দিকে বার্ধক্যজনিত কারণে কুষ্টিয়া জেনারেল হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় তিনি মৃত্যুবরণ করেন (ইন্না লিল্লাহে ওয়া ইন্না ইলাহে রাজিউন)। মৃত্যুকালে তিনি স্ত্রী, পুত্র, কন্যসহ অসংখ্য গুনগ্রাহী রেখে গেছেন। গতকাল মঙ্গলবার বিকের ৪টার সময় আড়িয়া ইউনিয়নের চকঘোগা ঈদগাহ ময়দানে তার নামাজে জানাযা শেষে পারিবারিক কবরস্থানে দাফন করা হয়। জানাযা নামাজে অনান্যদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন কুষ্টিয়া-১ (দৌলতপুর) আসনের সাবেক সাংসদ আফাজ উদ্দীন আহাম্মেদ, আলহাজ্ব রেজা আহাম্মেদ বাচ্চু মোল্লা, মিরপুর উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারন সম্পাদক ও উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান কমারুল আরেফিন, দৌলতপুর উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারন সম্পাদক এ্যাডঃ শরিফ উদ্দিন রিমন, উপজেলা চেয়ারম্যান এ্যাডঃ এজাজ আহমেদ মামুন, সদরপুর ইউনিয়ন পরিষদের সাবেক চেয়ারম্যান আলহাজ্ব আব্দুল হক প্রমুখ। এর আগে পরিবারের পক্ষ থেকে তার ছেলে আড়িয়া ইউনিয়নের চেয়ারম্যান সাঈদ আনছারী বিপ্লব তার পিতার বিদেহী আত্মার মাগফিরাত কামনা করে বক্তব্য রাখেন। বিশিষ্ট এ সমাজ  সেবক হাজী আবুল কাশেমের মৃত্যুতে এলাকায় শোকের ছাঁয়া নেমে এসেছে। জেলা, উপজেলা আওয়ামী লীগ, যুবলীগ, আওয়ামী লীগের অংগসংগঠনসহ বিভিন্ন রাজনৈতিক দলের নেতৃবৃন্দ, সামাজিক সংগঠনের নেতৃবৃন্দরা গভীর শোক প্রকাশ করেছেন। সেই সাথে শোক সন্তোপ্ত পরিবারের প্রতি সমবেদনা জানান। বিকেলে জানাযা নামাজে এলাকার সর্বস্তরের মানুষ অংশগ্রহন করেন।

কুষ্টিয়া মেডিকেল ইনস্টিটিউট ও আলো ম্যাটস্’র উদ্যোগে ডেঙ্গু প্রতিরোধে সচেতনতামূলক কর্মসূচী

গতকাল মঙ্গলবার কুষ্টিয়া মেডিকেল ইনস্টিটিউট ও আলো ম্যাটস্’র যৌথ উদ্যোগে শহরের আলো মোড়ে অবস্থিত (আলো ভবন) প্রতিষ্ঠানে ও এর আশেপাশে ডেঙ্গু প্রতিরোধে সচেতনতামুলক কর্মসূচীর আয়োজন করা হয়। কর্মসূচীতে কুষ্টিয়া মেডিকেল ইনস্টিটিউট ও আলো ম্যাটস্’র পরিচালক গাজী মাহাবুবসহ উক্ত প্রতিষ্ঠান সমুুুহের কর্মকর্তা, কর্মচারী ও ছাত্র-ছাত্রী উপস্থিত ছিলেন। এ উপলক্ষে সকাল ১০টায় প্রতিষ্ঠানের সেমিনার কক্ষে এক সচেতনতামূলক আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়। পরিচ্ছন্নতা কর্মসুচীতে প্রতিষ্ঠানের নিজস্ব ভবন ও এর আশেপাশের এলাকা পরিস্কার করা হয়। কর্মসূচীতে উপস্থিত বক্তারা বলেন, ডেঙ্গু বর্তমানে সবচেয়ে ভয়াবহ প্রাকৃতিক দুর্যোগ হলেও নিজেরা একটু সচেতন হওয়ার মাধ্যমে খুব সহজেই এই দুর্যোগ মোকাবেলা করা সম্ভব। ডেঙ্গু একটি ভাইরাস জ্বর আর এই ভাইরাস বহন করে এডিস নামক একটি মশা। এই এডিস মশা আমাদের আশেপাশে জমে থাকা পরিস্কার পানিতে বংশ বিস্তার করে। এর জন্য আমাদের আশেপাশের এলাকায় জমে থাকা জমে থাকা পানির স্থান যেমন ডাবের খোলা, মাটির পাত্র, গাড়ির পরিত্যাক্ত টায়ার, এসি অথবা ফ্রীজের পানির পাত্র, পশু পাখির খাবার পানির পাত্র ইত্যাদি প্রতিনিয়ত পরিস্কার রাখতে হবে। এ সময় উপস্থিত ছিলেন কুষ্টিয়া মেডিকেল ইনস্টিটিউট ও আলো ম্যাটস্’র কো-অডিনেটর এম,এস মুনির টুটুল, একাডেমিক ইনচার্জ আনিসুর রহমান, আহম্মেদ উপস্থিত ছিলেন।  সংবাদ বিজ্ঞপ্তি

কালুখালীতে ৩ দিনব্যাপী ফলদ বৃক্ষমেলা উব্দোধন

ফজলুল হক ॥ গতকাল রাজবাড়ীর কালুখালীতে ৩ দিনব্যাপী (০৬-০৮ আগষ্ট) ফলদ বৃক্ষমেলা-২০১৯ উপলক্ষেণ্য র‌্যালী, আলোচনা সভা ও শুভ উদ্বোধন অনুষ্ঠিত হয়েছে। উপজেলা কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের আয়োজনে উপজেরা পরিষদ চত্ত্বর থেকে “পরিকল্পিত ফল চাষ, যোগাবে পুষ্টি সম্মত খাবার” প্রতিপাদ্য বিষয় নিয়ে সকাল ১১ টায় বিশাল একটি র‌্যালী বের হয়। র‌্যালীটি উপজেলা শহরের আশপাশ রাস্তা প্রদক্ষিণ করে একই স্থানে এসে সমাপ্ত হয়। পরে উপজেলা পরিষদ চত্ত্বরে উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে উপজেলা নির্বাহী অফিসার কামরুন নাহারের সভাপতিত্বে সভায় প্রধান অতিথি হিসেবে উদ্বোধন ঘোষণা করেন উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান আলিউজ্জামান চৌধুরী (টিটো)। এসময় তিনি তার বক্তব্যে বলেন, একটি দেশের মোট আয়তনের ২৫ ভাগ বনায়ন থাকা দরকার। দেশ ও জলবায়ুকে নিরাপদ রাখতে প্রত্যেকেরই গাছ লাগানো প্রয়োজন। আপনারা সবাই মেলায় আসবেন এবং সামর্থ্য অনুযায়ী গাছের চারা ক্রয় করে বাড়ীর আঙ্গীনায় লাগাবেন। এতে করে আপনি ও দেশ নিরাপদ থাকবে। অনুষ্ঠানে আজিজুল ইসলাম শাহ আজিজের সঞ্চালনায় শুভেচ্ছা বক্তব্য রাখেন উপজেলা কৃষি অফিসার মোহাম্মদ মাছিদুর রহমান, অন্যান্যের মধ্যে উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান শেখ এনায়েত হোসেন, মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান মোছাঃ ডলি পারভীন, উপজেলা আওয়ামীলীগের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি আব্দুল খালেক মাষ্টার, মুক্তিযোদ্ধা সার্জেন্ট (অব) আকামত আলী মন্ডল, রতনদিয়া ইউপি চেয়ারম্যান মেহেদী হাচিনা পারভীন নিলুফা, উপ-সহকারী কৃষি কর্মকর্তা হাবিবুর রহমান ও কৃষক প্রতিনিধি আঃ মান্নান প্রমূখ বক্তব্য প্রদান করেন। অনুষ্ঠানে রূপসা মেধাচয়ন একাডেমী সহ উপস্থিত সকলকে উপজেলা কৃষি অফিসের পক্ষ থেকে বিনামূল্যে গাছের চারা বিতরণ করা হয়।

পৃথিবীর প্রথম ছবি পাঠাল চন্দ্রযান-২

ঢাকা অফিস ॥ উৎক্ষেপণের ১১ দিনের মাথায় মহাকাশ থেকে পৃথিবীর ছবি পাঠিয়েছে ভারতীয় চন্দ্রযান-২। প্রথম পাঠানো এই ছবি ঘিরে ব্যাপক উচ্ছ্বসিত দেশটির বিজ্ঞানীরা। ইন্ডিয়ান স্পেস রিসার্চ অর্গানাইজেশনের (ইসরো) পক্ষ থেকে একাধিক টুইট করে এসব ছবি পোস্ট করা হয়েছে। বিক্রম ল্যান্ডারের বিশেষ ক্যামেরায় তোলা ছবিগুলো পাঠিয়েছে চন্দ্রযান-২। টুইটে আরো জানানো হয়, পরিকল্পনা মতো ভারতের চন্দ্রাভিযানে সব কিছু স্বাভাবিকভাবেই চলছে। খবর আনন্দবাজার।গত ২২ জুলাই অন্ধ্রপ্রদেশের শ্রীহরিকোটায় সতীশ ধাওয়ন স্পেস রিসার্চ সেন্টার থেকে চাঁদের উদ্দেশে পাড়ি জমায় চন্দ্রযান-২। অরবিটার স্যাটেলাইট, বিক্রম ল্যান্ডার এবং প্রজ্ঞান রোভার এই তিনটি অংশ নিয়ে জিয়ো সিনক্রোনাইজড লঞ্চ ভেহিকেল থেকে বাহুবলী রকেটের পিঠে চড়ে চন্দ্রযান উড়ে যায়। তিনটি অংশ মিলিয়ে এর মোট ওজন ৩৮৫০ কেজি। এই বিক্রম ল্যান্ডারের সঙ্গেই লাগানো রয়েছে এল-১৪ ক্যামেরা। এই ক্যামেরায় তোলা ছবিগুলোই পাঠিয়েছে চন্দ্রযান-২। ইসরোর পক্ষ থেকে টুইট করে এবং সংস্থার ওয়েবসাইটে ছবিগুলো পোস্ট করা হয়। একই সঙ্গে জানানো হয়, স্বাভাবিক ও পূর্ব নির্ধারিত কর্মসূচি অনুযায়ী চাঁদের অদেখা পৃষ্টের উদ্দেশে এগিয়ে চলেছে চন্দ্রযান-২।ইসরো সূত্রে এর আগে জানানো হয়, পৃথিবী এবং চন্দ্রের কক্ষপথে ঘোরার মধ্যে মোট ১৫টি ধাপে এর শক্তি বাড়ানো হবে। এভাবেই ধীরে ধীরে চন্দ্রযানকে এগিয়ে দেয়া হবে চাঁদের দিকে। সবশেষে চাঁদের মাটিতে নামবে বিক্রম ল্যান্ডার। গত শনিবার বিকেল এই তৃতীয় ধাপ সম্পূর্ণ হয়েছে।উল্লেখ্য, চাঁদের মাটিতে পদার্পণ করতে চন্দ্রযানকে প্রায় চার লাখ কিলোমিটার পথ পাড়ি দিতে হবে।

কুমারখালীতে ডেঙ্গু প্রতিরোধে একযোগে পরিচ্ছন্নতা অভিযানে সর্বস্তরের মানুষ

কুমারখালীতে প্রতিনিধি ॥ ডেঙ্গু প্রতিরোধে উপজেলা প্রশাসন ঘোষিত নির্ধারিত সময়ে কুষ্টিয়ার কুমারখালী উপজেলায় একযোগে পরিস্কার পরিচ্ছন্নতা অভিযানে সামিল হয়েছে সর্বস্তরের মানুষ। “নিজ আঙ্গিনা পরিস্কার রাখি, সবাই মিলে সস্থ্য থাকি ও ডেঙ্গু মুক্ত দেশ চাই, পরিস্কার পরিচ্ছন্নতার বিকল্পনাই” শ্লোগানে পরিস্কার পরিচ্ছন্নতা অভিযান উদ্বোধন করা হয়। গতকাল মঙ্গলবার সকাল ১০টা থেকে পর্যায়ক্রমে কুমারখালী সরকারি বালিকা বিদ্যালয়, কুমারখালী সরকারি কলেজ, উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স, পৌরসভা ভবন ও মহেন্দ্রপুর মাধ্যমিক বিদ্যালয়ে উপস্থিত থেকে এই পরিচ্ছন্নতা অভিযান উদ্বোধন করেন উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান আব্দুল মান্নান খান, পৌরসভার মেয়র মো: সামছুজ্জামান অরুণ, উপজেলা নির্বাহী অফিসার রাজীবুল ইসলাম খান ও সহকারি কমিশনার (ভুমি) মুহাম্মদ নূর- এ আলম। এ ছাড়াও একই সময়ে উপজেলার ১১টি ইউনিয়নের চেয়ারম্যান ও ইউপি সদস্যরা নিজ নিজ ইউনিয়ন পরিষদ এলাকায় পরিস্কার পরিচ্ছন্নতা অভিযান উদ্বোধন করেছেন। পরিচ্ছন্নতা কার্যক্রম উদ্বোধনকালে উপজেলা নির্বাহী অফিসার জানান, সরকারি নির্দেশনা মোতাবেক সকাল ১০টা থেকে দুপুর ২টা পর্যন্ত উপজেলার সকল শিক্ষা প্রতিষ্ঠান, বেসরকারি ক্লিানিক ও ডায়াগনষ্টিক সেন্টার মালিক, সকল হাটবাজারের মালিক, ব্যবসায়ী সমিতি, চালকল মালিক সমিতি, বাস-ট্রাক মালিক সমিতি, ইটভাটা মালিক সমিতি, হোটেল রেস্তোরা মালিক সমিতিসহ সকল ব্যক্তি মালিকানাধীন প্রতিষ্ঠানের মালিকগণকে নিজ নিজ উদ্যোগে পরিচ্ছন্নতা কাজে অংশ নিতে বলা হয়েছে। উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান বলেন, যদিও কুমারখালীতে এখনো ডেঙ্গু রোগী পাওয়া যায় নাই, তবুও আমরা সতর্ক থাকতে চাই এই স্লোগানে কুমারখালীর সর্বস্তরের মানুষ আজ দলবদ্ধ হয়ে একযোগে নিজ নিজ বাড়ি ও প্রতিষ্ঠানের চারপাশে জমে থাকা পানিসহ অন্যান্য বর্জ পরিস্কার পরিচ্ছন্নতা অভিযানে সামিল হয়েছে। এ জন্য তিনি কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করেন। এ সময় পৌরসভার মেয়র মো: সামছুজ্জামান অরুণ বলেছেন, পৌর এলাকার প্রতিটি ওয়ার্ডের পরিচ্ছনতা অভিযান পরিচালনার বার্তা প্রচার করা হয়েছে। আজ মঙ্গলবার পরিচ্ছন্নতা অভিযান সহ মশা নিধনের জন্য পাড়া মহল্লায় ও পৌর সভার ড্রেন সহ ডোবা-নালা, মার্কেটের আশপাশে  ¯েপ্র করার  উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে। পৌর এলাকার বিভিন্ন সরকারি ও বেসরকারি প্রতিষ্ঠানে পরিচ্ছন্নতা অভিযান উদ্বোধনকালে সরকারি কলেজের অধ্যক্ষ মো: শরীফ হোসেন, ভারপ্রাপ্ত উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডা. এ এইচ এম মাসুদ রুমী, সরকারি বালিকা বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক মো: আবুল কাসেম, পৌরসভার প্যানেল মেয়র এস, এম রফিকুল ইসলাম রফিক, কাউন্সিলর আনিসুর রহমান আনিস, জুলফিকার আলী হিরো প্রমূখ উপস্থিত ছিলেন। উল্লেখ্য, কুমারখালী উপজেলায় একযোগে পরিস্কার পরিচ্ছন্নতা অভিযান শুরু করার লক্ষ্যে উপজেলা নির্বাহী অফিসার রাজীবুল ইসলাম খান গত সোমবার সকালে নিজ কার্যালয়ে বিভিন্ন সরকারি দপ্তরের কর্মকর্তা, জনপ্রতিনিধি, শিক্ষা প্রতিষ্ঠান প্রধান ও গণমাধ্যমকর্মীদের নিয়ে বিশেষ সভা করে ব্যাপক প্রচার প্রচারণার নির্দেশনা প্রদানসহ একযোগে সবাইকে পরিচ্ছন্নতা অভিযানে অংশ নেওয়ার আহবান জানান।

দৌলতপুরে ডেঙ্গু প্রতিরোধে গণসচেতনতা ও পরিস্কার পরিচ্ছন্নতা অভিযান

দৌলতপুর প্রতিনিধি ॥ কুষ্টিয়ার দৌলতপুরে ডেঙ্গু প্রতিরোধে গণসচেতনতা ও পরিস্কার পরিচ্ছন্নতা অভিযান চালানো হয়েছে। গতকাল মঙ্গলবার সকাল ১০টা থেকে দুপুর ২টা পর্যন্ত দৌলতপুর উপজেলা চেয়ারম্যান এ্যাড. এজাজ আহমেদ মামুন ও দৌলতপু উপজেলা নির্বাহী অফিসার শারমিন আক্তারের নেতৃত্বে উপজেলার বিভিন্ন এলাকায় এ অভিযান চালানো হয়। এসময় দৌলতপুর সহকারী কমিশনার (ভূমি) মো. আজগর আলী ও দৌলতপুর প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্ত সাইদুর রহমানসহ উপজেলা পরিষদের বিভিন্ন দপ্তরের কর্মকর্তা উপস্থিত ছিলেন। প্রথমে উপজেলার সাদীপুর এলাকায় ডেঙ্গু প্রতিরোধে গণসচেতনতা ও পরিস্কার পরিচ্ছন্নতা অভিযান চালানো হলে সেখানে আল সালেহ্ লাইফ লাইনের কো-অর্ডিনেটর হুমায়ুন আহমেদসহ স্কুলের শিক্ষার্থীরা এ কার্যক্রমে অংশ নেয়। এছাড়াও উপজেলার তারাগুনিয়া, হোসেনাবাদ, মথুরাপুর, ডাংমড়কা, প্রাগপুর, মহিষকুন্ডি ও আদাবাড়িয়াসহ বিভিন্ন এলাকায় ডেঙ্গু প্রতিরোধে গণসচেতনতা, লিফলেট বিতরণ ও পরিস্কার পরিচ্ছন্নতা অভিযান চালানো হয়েছে। অপরদিকে দৌলতপুর কলেজের অধ্যক্ষ মো. ছাদিকুজ্জামান খানের নেতৃত্বে ও তত্বাবধানে দৌলতপুর কলেজ চত্বরে ডেঙ্গু প্রতিরোধে গণসচেতনতা ও পরিস্কার পরিচ্ছন্নতা অভিযান চালানো হয়েছে। এতে দৌলতপুর কলেজের শিক্ষকবৃন্দ ও শিক্ষার্থীর অংশ নেয়। এছাড়াও উপজেলার হোগলবাড়িয়া ইউনিয়নের চেয়ারম্যান সেলিম চৌধুরীর নেতৃত্বে ডেঙ্গু প্রতিরোধে গণসচেতনতা ও পরিস্কার পরিচ্ছন্নতা অভিযান চালানো হয়।

ডেঙ্গু নিয়ন্ত্রন ও প্রতিরোধে জেলা প্রশাসনের ক্রাশ প্রোগ্রাম অনুষ্ঠিত

কুষ্টিয়া পৌরসভার ২১টি ওয়ার্ডে পরিষ্কার পরিচ্ছন্নতা অভিযান অব্যাহত

কুষ্টিয়া জেলা প্রশাসকের নির্দেশনায় জেলাব্যাপী ক্রাশ প্রোগ্রামের অংশ হিসেবে কুষ্টিয়া পৌরসভার ২১টি ওয়ার্ডে পরিষ্কার পরিচ্ছন্নতা  অভিযান গতকাল মঙ্গলবার সকাল ১০টা হতে দুপুর ২ টা পর্যন্ত পরিচালিত হয়েছে। এই পরিষ্কার পরিচ্ছনতার কাজ মনিটরিং এর জন্য প্রশাসকের পক্ষ থেকে অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (রাজস্ব) আজাদ জাহান’র নেতৃত্বে একটি বিশেষ টিম তদারকি করেছেন। এছাড়া কুষ্টিয়া পৌরসভার মেয়র আনোয়ার আলী পৌর এলাকায়  এডিস মশা বংশ বিস্তার বন্ধে ও জনসচেতনতা বৃদ্ধির জন্য বিভিন্ন কর্মসূচি গ্রহন করেছেন। পর্যায়ক্রমে এই কর্মসূচি বাস্তবায়নের জন্য পৌরসভার ২১টি ওয়ার্ডে কাউন্সিলরদের প্রধান করে পৌরসভা এবং পৌরসভায় পরিচালিত বিভিন্ন প্রকল্পের কর্মকর্তা/কর্মচারীদের সমন্যয়ে প্রতিটি ওয়ার্ডে পাঁচ সদস্য বিশিষ্ট একটি কমিটি গঠন করা হয়েছে। এই কমিটি স্ব স্ব ওয়ার্ড কাউন্সিলরের নেতৃত্বে স্বস্ব এলাকায় জনগনকে সাথে নিয়ে জনসচেতনামূলক কাজ করে যাচ্ছে।  এছাড়াও পৌরসভার কনজারভেন্সি শাখার পরিচ্ছন্ন কর্মিরা গতানুগতিক কাজের পাশা-পাশি অতিরিক্ত সময় ধরে পৌর এলাকা পরিষ্কার পরিচ্ছন্নতার জন্য মেয়রের নির্দেশে কাজ করে যাচ্ছে। পৌর এলাকার ওয়ার্ড কাউন্সিলরদের নেতৃত্বে বসত বাড়ী, স্কুল কলেজ , মসজিদ- মাদ্রাসাসহ ড্রেনে বাড়ীর আঙ্গিনায় স্প্রে মেশিন দিয়ে প্রতিদিন এডিস মশক নিধন ঔষধ ছিটানো হচ্ছে ও জনসচেতনামূলক লিফলেট বিতরণ করা হচ্ছে। সংবাদ বিজ্ঞপ্তি

রবীন্দ্র মৈত্রী বিশ্ববিদ্যালয়ে বিশ্বকবি রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরের ৭৮তম প্রয়াণ দিবস পালিত

বিশ্বকবি রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরের স্মৃতিধন্য কুষ্টিয়াতে রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরের নামে প্রতিষ্ঠিত রবীন্দ্র মৈত্রী বিশ্ববিদ্যালয়ে কবিগুরুর ৭৮ তম প্রয়াণ দিবস পালন করা হয়েছে। বিশ্ববিদ্যালয়ের উন্মুক্ত মঞ্চে দুপুর বারোটার সময় এক আলোচনা সভার আয়োজন করা হয়। উক্ত আলোচনা সভায় প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন রবীন্দ্র মৈত্রী বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য প্রফেসর ডঃ মোঃ শাহজাহান আলী। মূখ্য আলোচক হিসেবে মূল্যবান বক্তব্য রাখেন রবীন্দ্র মৈত্রী বিশ্ববিদ্যালয়ের মানবিক ও সামাজিক বিজ্ঞান অনুষদের ডিন ও বাংলা বিভাগের বিভাগীয় প্রধান প্রফেসর ডঃ মোঃ শহীদুর রহমান। অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন রবীন্দ্র মৈত্রী বিশ্ববিদ্যালয়ের রেজিস্ট্রার (ভারপ্রাপ্ত) ডক্টর ইসমত আরা খাতুন। অনুষ্ঠানে স্বাগত বক্তব্য প্রদান করেন বাংলা বিভাগের প্রভাষক ডঃ মোঃ মহিবুল ইসলাম। অনুষ্ঠানে বিশ্ববিদ্যালয়ের সকল বিভাগের শিক্ষার্থী, শিক্ষকমন্ডলী, কর্মকর্তা-কর্মচারী উপস্থিত ছিলেন। অনুষ্ঠানটি সঞ্চালনা করেন আইসিই বিভাগের শিক্ষার্থী মো  আরিফুর রহমান সরকার। সংবাদ বিজ্ঞপ্তি

শিলাইদহে রবীন্দ্র প্রয়াণ দিবস উদযাপন

কুমারখালী প্রতিনিধি ॥ আলোচনা সভা ও প্রাণছোঁয়া সঙ্গীতানুষ্ঠান আয়োজনের মধ্যদিয়ে কুষ্টিয়ার কুমারখালীর শিলাইদহে বাঙালির প্রাণের মানুষ কবিগুরু রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরের ৭৮তম প্রয়াণ দিবস উদযাপন করা হয়েছে। এ উপলক্ষে গতকাল মঙ্গলবার বেলা ১১টায় প্রতœতত্ব অধিদপ্তর শিলাইদহ কুঠিবাড়ির আয়োজনে রবীন্দ্র স্মৃতিবিজড়িত ঐতিহাসিক বকুলতলায় অনুষ্ঠিত হয়েছে আলোচনা সভা ও সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান। এর আগে কবিগুরুর প্রতিকৃতিতে ফুল দিয়ে শ্রদ্ধা নিবেদন করা হয়। রবীন্দ্র কুঠিবাড়ির তত্ত্বাবধায়ক মো: মকলেসুর রহমানের সভাপতিত্বে এ অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি ছিলেন কুর্ষ্টিয়া ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয়ের বাংলা অনুষদের ডিন অধ্যাপক ড. সরোয়ার মুর্শেদ। স্মারক বক্তব্য রাখেন, ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয়ের বাংলা বিভাগের অধ্যাপক ড. রশিদুজ্জামান।  বিশেষ অতিথি হিসাবে বক্তব্য রাখেন, কুষ্টিয়া সরকারি মহিলা কলেজের প্রাণিবিদ্যা বিভাগের সহযোগী অধ্যাপক ও জাতীয় রবীন্দ্র সংগীত সম্মিলন পরিষদের সাধারন সম্পাদক ড. আকলিমা খাতুন, জাতীয় রবীন্দ্র সংগীত সম্মিলন পরিষদের সহ-সভাপতি কবি খলিলুর রহমান মজু। আলোচক হিসাবে সাহিত্যসহ কবিগুরুর জীবনের নানাদিক তুলে ধরে প্রাণবন্ত আলোচনা করেন, শিলাইদহ রবীন্দ্র সংসদের সাধারন সম্পাদক ও গবেষক এস, এম আফজাল হোসেন, গৌতম কুমার রায়, কবি ও নাট্যকার লিটন আব্বাস। আলোচনা সভা শেষে আলাউদ্দিন আহমেদ ডিগ্রি কলেজের প্রাণিবিদ্যা বিভাগের প্রভাষক মো: আরিফুজ্জামানের বিনম্র সঞ্চালনায় জাতীয় রবীন্দ্র সংগীত সম্মিলন পরিষদের শিল্পী ও শিলাইদহ বকুলতলা শিল্পী গোষ্ঠীর পরিবেশনায় অনুষ্ঠিত হয় প্রাণছোঁয়া রবীন্দ্র সংগীতানুষ্ঠান। রবীন্দ্র প্রয়াণ দিবসের অনুষ্ঠানে বিভিন্ন শ্রেণী- পেশার রবীন্দ্র ভক্তবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন। কবিগুরুর স্মতিবিজড়িত শিলাইদহ ছাড়াও কুষ্টিয়ার বিভিন্ন সংগঠন নানা আয়োজনে রবীন্দ্র প্রয়াণ দিবস উদযাপন করেছে।

দৌলতপুরে ইয়াবাসহ আটক-৩

দৌলতপুর প্রতিনিধি ॥ কুষ্টিয়ার দৌলতপুরে ইয়াবাসহ ৩জন মাদক ব্যবসায়ী আটক হয়েছে। গতকাল মঙ্গলবার বিকেলে উপজেলার মহিষকুন্ডি ঘুনাপাড়া এলাকায় অভিযান চালিয়ে ৩জন মাদক ব্যবসায়ীকে ১৫ পিস ইয়াবাসহ আটক করেছে পুলিশ। এরা হলো মিরপুর উপজেলার বারুইপাড়া গ্রামের আজিজুল মল্লিকের ছেলে মিঠু মল্লিক (৩০), বলিদাপাড়া গ্রামের ফজলুল হক মন্ডলের ছেলে প্রিন্স মাহমুদ (২৮) এবং কুষ্টিয়া সদরের জুগিয়া কদমতলা এলাকার আমজাদ মালিথার ছেলে আশরাফুল মালিথা (২৫)। দৌলতপুর থানা পুলিশ সূত্র জানায়, মাদক ক্রয় বিক্রয়ের গোপন সংবাদ পেয়ে দৌলতপুর থানার ওসি আজম খানের নির্দেশে দৌলতপুর থানা পুলিশ মহিষকুন্ডি ঘুনাপাড়া এলাকায় অভিযান চালায়। এসময় পুলিশের উপস্থিতি টের পেয়ে মাদক ব্যবসায়ীরা পালানোর চেষ্টা করলে পুলিশ তাদের ধাওয়া দিয়ে আটক করে এবং তাদের কাছ থেকে মাদক উদ্ধার করে। এ ঘটনায় দৌলতপুর থানায় মামলা হয়েছে। অপরদিকে চিলমারী বিওপি’র টহল গতকাল মঙ্গলবার দুপুর আড়াইটার দিকে চিলমারী আঞ্জুপাড়া মাঠে অভিযান চালিয়ে ১৯৫ পিস ইয়াবা উদ্ধার করেছে। তবে এ ঘটনায় কেউ আটক হয়নি।

মিরপুরে জাতীয় শোক দিবস উদযাপন উপলক্ষে প্রস্তুতি সভা

আছাদুর রহমান বাবু ॥ কুষ্টিয়ার মিরপুরে ১৫ আগষ্ট জাতীয় শোক দিবস উদযাপন উপলক্ষে উপজেলা প্রশাসনের উদ্যোগে এক প্রস্তুতি সভা অনুষ্ঠিত হয়েছে। গতকাল মঙ্গলবার সকালে উপজেলা পরিষদ সভাকক্ষে উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান কামারুল আরেফিনের সভাপতিত্বে সভায় উপস্থিত ছিলেন পৌর মেয়র হাজী এনামুল হক, উপজেলা পরিষদের ভাইস-চেয়ারম্যান আবুল কাশেম জোয়ার্দ্দার, মহিলা ভাইস- চেয়ারম্যান মর্জিনা খাতুন, উপজেলা মুক্তিযোদ্ধা কমান্ডের সাবেক কমান্ডার নজরুল করিম, আফতাব উদ্দিন খান, মিরপুর থানার অফিসার আবুল কালাম, জেলা পরিষদের সদস্য আলহাজ্ব মহাম্মদ আলী জোয়ার্দ্দার, উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডাঃ সেলিম হোসেন ফরাজী, উপজেলা মৎস্য কর্মকর্তা রাজিউল ইসলাম, উপজেলা কৃষি সম্প্রসারণ কর্মকর্তা সাবিহা সুলতানা, উপজেলা প্রাণিসম্পদ দপ্তরের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা ডাঃ সোহাগ রানা, উপজেলা শিক্ষা কর্মকর্তা জুলফিকার হায়দার, উপজেলা শিক্ষা কর্মকর্তা কামরুল ইসলাম, উপজেলা সমাজসেবা কর্মকর্তা জামশেদ আলী, উপজেলা রির্সোস সেন্টারের ইন্সট্রেক্টর ফিরোজা পারভীন, পল্লী বিদ্যুৎ সমিতির ডিজিএম প্রকৌশলী এনামুল হক, উপজেলা প্রকৌশলী মিজানুর রহমান, উপজেলা সাব-রেজিষ্ট্রার আনোয়ার হোসেন, উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা আব্দুল কাইয়ূম খান, মেডিকেল অফিসার ডাঃ শামসুন নাহার, উপজেলা যুব উন্নয়ন কর্মকর্তা নূরুল ইসলাম নান্নু, সদরপুর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান রবিউল হক রবি, ছাতিয়ান ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান জসিম উদ্দিন বিশ্বাস, আমলা ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান আনোয়ারুল ইসলাম মালিথা, ফুলবাড়ীয়া ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান হাজী আব্দুস সালাম, তালবাড়ীয়া ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান আব্দুল হান্নান মন্ডল, চিথলিয়া ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান গিয়াস উদ্দিন পিস্তুল, বহলবাড়ীয়া ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান সোহেল রানা বিশ্বাস, উপজেলা মহিলা বিষয়ক কর্মকর্তা তমান্নাজ খন্দকার, উপজেলা সমবায় কর্মকর্তা নাজবীন আক্তার, উপজেলা নির্বাচন কর্মকর্তা শিরিনা আকতার বানু, মিরপুর ফায়ার সার্ভিস এন্ড সিভিল ডিফেন্সের ষ্টেশন কর্মকর্তা রুহুল আমিন, উপজেলা বিআরডিবি কর্মকর্তা আব্দুর রাজ্জাক, উপজেলা পল্লী দারিদ্র বিমোচন কর্মকর্তা মনোজ কুমার ইন্দ্র, প্রেসক্লাবের সাধারণ সম্পাদক রাশেদুজ্জামান রিমন, সাবেক সভাপতি আছাদুর রহমান বাবু, সাবেক আহ্বায়ক হুমায়ূন কবির হিমু, পোড়াদহ ইউনিয়ন পরিষদের ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান সেলিম হাসান, পৌর  কাউন্সিলর জমির উদ্দিন প্রমুখ।

 

মিরপুরে মশক নিধন ও পরিচ্ছন্নতা অভিযান

আমলা অফিস ॥ কুষ্টিয়ার মিরপুর উপজেলা পরিষদ ও প্রশাসনের যৌথ উদ্যোগে মশক নিধন ও পরিষ্কার পরিচ্ছন্নতা অভিযান পরিচালনা করা হয়েছে। “নিজের আঙিনা পরিস্কার করি, সবাই মিলে সুস্থ থাকি” শ্লোগানে উপজেলা পর্যায়ে মশক নিধন ও পরিচ্ছন্নতা সপ্তাহ পালন উপলক্ষে গতকাল মঙ্গলবার এক বর্নাঢ্য র‌্যালী বের হয়ে শহরের প্রধান প্রধান সড়ক প্রদক্ষিণ করেন। পরে উপজেলা চত্বরে জঙ্গল কেটে পরিষ্কার পরিচ্ছন্নতা কার্যক্রম করা হয়। উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান কামারুল আরেফিন এ কার্যক্রমের উদ্বোধন করেন। এ সময়ে উপস্থিত ছিলেন পৌর মেয়র হাজী এনামুল হক, উপজেলা পরিষদের ভাইস- চেয়ারম্যান আবুল কাশেম জোয়ার্দ্দার, মহিলা ভাইস-চেয়ারম্যান মর্জিনা খাতুন, উপজেলা মুক্তিযোদ্ধা কমান্ডের সাবেক কমান্ডার আফতাব উদ্দিন খান, মিরপুর থানার অফিসার আবুল কালাম, উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডাঃ সেলিম হোসেন ফরাজী, উপজেলা শিক্ষা কর্মকর্তা জুলফিকার হায়দার, সদরপুর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান রবিউল হক রবি, ছাতিয়ান ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান জসিম উদ্দিন বিশ্বাস, আমলা ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান আনোয়ারুল ইসলাম মালিথা, ফুলবাড়ীয়া ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান হাজী আব্দুস সালাম, তালবাড়ীয়া ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান আব্দুল হান্নান মন্ডল, চিথলিয়া ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান গিয়াস উদ্দিন পিস্তুল, বহলবাড়ীয়া ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান সোহেল রানা বিশ্বাস, মিরপুর ফায়ার সার্ভিস এন্ড সিভিল ডিফেন্সের ষ্টেশন কর্মকর্তা রুহুল আমিন, প্রেসক্লাবের সাধারণ সম্পাদক রাশেদুজ্জামান রিমন, পোড়াদহ ইউনিয়ন পরিষদের ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান সেলিম হাসান, পৌর  কাউন্সিলর জমির উদ্দিন প্রমুখ।

ডেঙ্গু প্রতিরোধ ও পরিস্কার-পরিচ্ছন্নতা অভিযানে আতাউর রহমান আতা

ডেঙ্গু মুক্ত দেশ গড়তে নিজ নিজ আঙ্গিনা পরিস্কার রাখতে হবে

সুজন কর্মকার ॥ কুষ্টিয়া সদর উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান ও কুষ্টিয়া শহর আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক আতাউর রহমান আতা বলেছেন ডেঙ্গু মুক্ত দেশ গড়তে নিজ নিজ আঙ্গিনা পরিস্কার রাখতে হবে। গতকাল মঙ্গলবার সকালে কুষ্টিয়া সদর উপজেলা পরিষদ প্রাঙ্গনে ডেঙ্গু প্রতিরোধ ও পরিস্কার-পরিচ্ছন্নতা অভিযানে তিনি নিজ হাতে কাঁচি নিয়ে পরিস্কার শুরু করেন। ডেঙ্গু মুক্ত দেশ গড়তে নিজ নিজ আঙ্গিনা পরিস্কার রাখার আহবান জানান আতাউর রহমান আতা। কুষ্টিয়া সদর উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান আতাউর রহমান আতা জানান, ডেঙ্গু বর্তমানে প্রাকৃতিক দুর্যোগ হলেও নিজেরা একটু সচেতন হওয়ার মাধ্যমে সহজেই এই দুর্যোগ মোকাবেলা করা সম্ভব। ডেঙ্গু একটি ভাইরাস জ্বর, আর এই ভাইরাস বহন করে এডিস নামক মশা। এই এডিস মশা আমাদের আশেপাশে জমে থাকা পানিতে বংশ বিস্তার করে। এর জন্য আমাদের আশেপাশের এলাকায় জমে থাকা পানির স্থান যেমন ডাবের খোলা, মাটির পাত্র, গাড়ির পরিত্যাক্ত টায়ার, এসি অথবা ফ্রীজের পানির পাত্র প্রতিনিয়ত পরিস্কার রাখতে হবে। সেই সাথে ময়লা আবর্জনা নির্দিষ্ট স্থানে ফেলতে হবে। এ সময় সদর উপজেলা পরিষদের কর্মকর্তা-কর্মচারীবৃন্দ  পরিস্কার-পরিচ্ছন্নতা অভিযানে অংশগ্রহণ করেন।

কুষ্টিয়া আদর্শ ডিগ্রী কলেজে উদ্বুদ্ধকরণ সভায় এডিএম

আতংক নয়, ডেঙ্গু প্রতিরোধে সবাইকে সচেতন হতে হবে

নিজ সংবাদ ॥ আতংক নয়, ডেঙ্গু প্রতিরোধে সবাইকে সজাগ ও সচেতন হতে হবে। এডিস মশা নিধন ও ডেঙ্গু প্রতিরোধে পরিস্কার- পরিচ্ছন্নতাসহ সচেতনা সৃষ্টিতে গতকাল মঙ্গলবার কুষ্টিয়ার ১০, ১১ ও ১২  নম্বর ওয়ার্ডসহ শহরের কয়েকটি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে উদ্বুদ্ধকরণ সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে কুষ্টিয়ার অতিরিক্ত জেলা ম্যাজিষ্ট্রেট লুৎফুন নাহার এ কথা বলেন। এ উপলক্ষ্যে দুপুর পৌনে ১টায় কুষ্টিয়া আদর্শ ডিগ্রী মহাবিদ্যালয়ের হলরুমে আয়োজিত উদ্বুদ্ধকরণ সভা অনুষ্ঠিত হয়। সভায় কলেজের শিক্ষক-কর্মচারী ও শিক্ষার্থীদের উদ্দেশ্যে অতিরিক্ত জেলা ম্যাজিষ্ট্রেট বলেন, এ বছর ডেঙ্গুর প্রকোপ বেড়েছে। তবে ডেঙ্গু নিয়ে আতংকিত হওয়ার কিছু নেই। পরিস্কার-পরিচ্ছন্নতা ও সবাইকে সচেতন করার মাধ্যমে এডিশ মশা এবং ডেঙ্গুর বিরুদ্ধে প্রতিরোধ গড়ে তুলতে হবে। এডিস মশার মাধ্যমে ডেঙ্গু ছড়িয়ে সর্বত্র পড়ছে। তাই নিজ নিজ উদ্যোগে বাড়ি,অফিস-আদালত, শিক্ষা প্রতিষ্ঠান,ব্যবসা-প্রতিষ্ঠানসহ জনবসতি এলাকার চারিপাশ পরিস্কার-পরিচ্ছন্ন রাখতে হবে। এছাড়া ফ্রীজের ট্রে- তে জমে থাকা পানি, ফুলের টব, বাড়ির ছাদ ও আঙ্গিনা থেকে স্বচ্ছ পানি সরিয়ে পরিস্কার-পরিচ্ছন্নতার উপর সভায় গুরুত্বারোপ করা হয়। সভায় অন্যান্যের মধ্যে কুষ্টিয়া শহর আওয়ামী লীগের সভাপতি ও আদর্শ কলেজের প্রতিষ্ঠাতা বীর মুক্তিযোদ্ধা তাইজাল আলী খান, উপাধ্যক্ষ সালাউদ্দিন, পুলিশের গোয়েন্দা বিভাগের এসআই শাহাদত প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন। এরআগে তিনি মিলপড়া এলাকার মোহিনী মোহন বিদ্যাপীটসহ কুষ্টিয়া পৌরসভার ১০, ১১ ও ১২  ওয়ার্ডে পরিস্কার-পরিচ্ছন্নতা কার্যক্রম পরিদর্শন করেন। এ সময় ওই তিনটি ওয়ার্ডের কাউন্সিলর মতিয়ার রহমান মজনু, আনিস কোরাইশী ও গোলাম মোস্তফা লাভলুসহ এলাকার গন্যমান্য ব্যক্তিবর্গ উপস্থিত ছিলেন।

 

পুলিশের তৎপরতায় অব্যাহত

ভেড়ামারায় গরু ব্যবসায়ীদের কাছ ডাকাতি করা কিছু টাকা উদ্ধারসহ ডাকাত গ্রেফতার

নিজ সংবাদ ॥ গত ৩০ জুলাই রাত ৯টার সময় মোঃ রহমান ব্যাপারী (৪৫) সহ আরও ৮/৯ জন গরু ব্যাপারী পাবনার ঈশ্বরদী উপজেলার অরণখোলা গরুর হাটে গরু বিক্রি শেষে ষ্ট্রায়ারিং গাড়ি যোগে বাড়ী ফেরার পথে ভেড়ামারা থানার বাহিরচর পশ্চিমপাড়া রেল লাইনের পাশে সোজাপোল নামক স্থানে মৃত মজিবুল হক মাঙ্গনের পুকুর পাড়ের নিকট পৌঁছালে একদল ডাকাত ধারালো হাসুয়া, ছোরা, লাঠিসহ রাস্তায় বেরিকেড সৃষ্টি করে উপরোক্ত গরু ব্যাপারীদের কাছ থেকে গরু বিক্রি করা ৪ লাখ ৯৭ হাজার ২শ’ টাকা ছিনিয়ে নেয় এবং গরু ব্যাপারী শাহাদত হোসেন ও ড্রাইভার আলতাফ’কে ধারালো হাসুয়া দিয়ে কুপিয়ে গুরুতর জখম করে। এসংক্রান্তে ভেড়ামারা থানার মামলা নং-১৪, তারিখ-৩১/০৭/২০১৯ খ্রিঃ, ধারা-৩৯৪ পেনাল কোড রুজু হয়। ভেড়ামারা থানা পুলিশ সোমবার দুপুর ২টার সময় গোপন সংবাদের ভিত্তিতে গোলাপনগর এলাকা হতে ঘটনার সথে জড়িত সন্দেহে মোঃ আশরাফুল ইসলাম (২৯) ও মোঃ মঞ্জুর রহমান (৩৫) গ্রেফতার  করে। গ্রেফতারের পর জিজ্ঞাসাবাদে তারা ঘটনায় জড়িত থাকার কথা স্বীকার করে এবং আসামীদের দেখানো মতে ঘটনাস্থল সংলগ্ন রেল লাইনের পাশের ঝোঁপের মধ্য হতে ঘটনায় ব্যবহৃত ধারালো হাসুয়া উদ্ধার করা হয়। এছাড়া  সোমবার তারিখ রাত  পৌনে ১২টার সময় আসামী  আশরাফুল ইসলাম এর বসত ঘরে শয়ন কক্ষ হতে সাক্ষীদের মোকাবেলায় লুন্ঠিত টাকার মধ্যে ১০ হাজার টাকা উদ্ধার পূর্বক জব্দতালিকা মূলে জব্দ করা হয়। তারা ঘটনার সাথে জড়িত অন্যান্য আসামীদের নাম-ঠিকানা প্রকাশ করেছে। লুন্ঠিত টাকা উদ্ধার ও অন্যান্য আসামী গ্রেফতারে জন্য অভিযান অব্যাহত আছে।