ওয়ার্কসপ অন রির্সাস মেথডোলজি এন্ড কনডাক্টিং ই-রিসার্স শীর্ষক কর্মশালায় ড. রাশিদ আসকারী

ইবির প্রতিটি বিভাগ গবেষণার দূর্গ হিসেবে গড়ে উঠবে

ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয়ের ভাইস-চ্যান্সেলর প্রফেসর ড. মোঃ হারুন-উর-রশিদ আসকারী (ড. রাশিদ আসকারী) বলেছেন, ইসলামী বিশ্বদ্যিালয়ের প্রতিটি বিভাগ গবেষণার দূর্গ হিসেবে গড়ে উঠবে। সেই লক্ষ্য নিয়েই আমরা কাজ করে চলেছি। এজন্য নতুন নতুন বিষরে উপর নিয়মিত সেমিনারের আয়োজন করা হচ্ছে। তিনি বলেন, শিক্ষকদের প্রচুর পরিমানে লেখাপড়া করতে হবে। শিক্ষকদের গতানুগতিক পাঠদান করলেই চলবে না। পাঠদানের পাশাপাশি সংশ্লিষ্ট বিষয় নিয়ে নতুন কিছু বলতে হবে এবং ছাত্র-ছাত্রীদের নতুন কিছু বলার এবং চিন্তাকে উৎসাহিত করতে হবে।  তিনি  সকলকে গবেষণা মুখি আহওয়ার আহবান জানান। গতকাল বুধবার সকালে ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয় আইকিউএসি’র আয়োজনে, আইকিউএসি’র সেমিনার কক্ষে ওয়ার্কসপ অন রির্সাস মেথোডলজি এন্ড কনডাক্টিং ই-রিসার্স শীর্ষক দিনব্যাপী কর্মশালার উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি’র বক্তৃতায় ভাইস চ্যান্সেলর এসব কথা বলেন। অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি’র বক্তৃতায় প্রো-ভাইস চ্যান্সেলর প্রফেসর ড. মোঃ শাহিনুর রহমান বলেন, কোন বিষয়ে গবেষণা করতে হলে অবশ্যয় সে বিষয়ে প্রাথমিক জ্ঞান থাকতে হবে। প্রাথমিক জ্ঞান ছাড়া গবেষণা সম্ভব নয়। তিনি বলেন, শিক্ষকদের গবেষণার কোন বিকল্প নেই। এক সময় গবেষণা করা খুব দুরহ বিষয় ছিল। তথ্য প্রযুক্তির এ যুগে গবেষণা অনেকটা সহজ হয়েছে। তিনি সকলে গবেষণার দিকে এগিয়ে আসার আহবান জানান। অনুষ্ঠানে রিসোর্স পারসন হিসেবে বক্তব্য রাখেন চট্রগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের সমাজবিজ্ঞান অনুষদের ডিন প্রফেসর ড. ফরিদ উদ্দিন আহমেদ। অনুষ্ঠানে বক্তব্য রাখেন আইকিউএসি’র অতিরিক্ত পরিচালক প্রফেসর ড. কাজী আকতার হোসেন। সভাপতিত্ব করেন আইকিউএসি’র পরিচালক প্রফেসর ড. কে এম আব্দুস ছোবহান। উদ্বোধনী অনুষ্ঠান শেষে প্রফেসর ড. ফরিদ উদ্দিন আহমেদ কর্মশালায় মুলবিষয়বস্তু উপস্থাপন করেন। দিনব্যাপী এ কর্মশালায় বিশ্ববিদ্যালয়ের সকল বিভাগের প্রভাষক এবং সহকারী অধ্যাপক পর্যায়ের শিক্ষকগণ অংশগ্রহণ করেন।

কুষ্টিয়া সরকারি কলেজে মশক নিধন, পরিস্কার পরিচ্ছন্নতা, বৃক্ষরোপণ ও ছেলেধরা গুজব প্রতিরোধে সচেতনতামূলক আলোচনা সভা

নিয়ামুল হক ॥ কুষ্টিয়া সরকারি কলেজে মশক নিধন, পরিস্কার পরিচ্ছন্নতা, বৃক্ষরোপণ ও ছেলেধরা গুজব প্রতিরোধে সচেতনতামূলক আলোচনাসভা অনুষ্ঠিত হয়েছে। গতকাল বুধবার সাকাল ১১টায় কলেজ প্রাঙ্গনে মশক নিধন পরিস্কার পরিচ্ছন্নতা ও বৃক্ষরোপণের উদ্বোধন করেন সদর উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান আতাউর রহমান আতা। সভাপতিত্ব করেন সরকারি কলেজের অধ্যক্ষ প্রফেসর কাজী  মনজুর কাদির। এসময় সরকারি কলেজ শাখা রেডক্রিসেন্ট সোইয়টির আহবায়ক লাল মোহাম্মদ, মশক নিধন পরিস্কার পরিচ্ছন্নতা বৃক্ষরোপণ ও ছেলেধরা গুজব প্রতিরোধ কমিটির আহবায়ক ফিরোজা খাতুন, হিসাব বিজ্ঞানের শিক্ষক শামছুল হক, ভাইস পিন্সিপাল আনছার হোসেন, উদ্ভিদ বিজ্ঞানের আহসান কবিরসহ  ৫শতাধিক শিক্ষার্থীরা উপস্থিত ছিলেন। এ সময় বক্তারা বলেন কুষ্টিয়াসহ সারা বাংলাদেশে এডিস মশার ভয়াবহতা বেড়েই চলেছে এ থেকে আমাদেরকে রক্ষা পেতে হলে সকলের বাড়ীর আঙ্গনা অফিস শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের চারিপাশ পরিস্কার পরিচ্ছন্ন করে রাখতে হবে। যাতে করে এডিস মশা বংশ বিস্তার করতে না পারে। বক্তারা বলেন আমাদের সচেতনতামূলক আলোচনাসভার উদ্দেশ্য এটায় এখানে ৫শত বা এক হাজার শিক্ষার্থীর মাঝে ম্যাসেজটা পৌঁছে দিতে পারলে ১হাজার পরিবারকে ম্যাসেজটা দেওয়া হবে। বক্তারা ছেলেধরা গুজবে কান না দিয়ে সঠিক তথ্য জেনে প্রয়োজনে পুলিশকে জানানোর জন্য সবাই সচেতন থাকতে হবে। কোন গুজবে কান দিয়ে হঠকারিতা  দেশের ভিতর অরাজকতা তৈরি করে দেশের ভাবমূর্তি নষ্ট করা যাবে না। একটি কুচক্রি মহল দেশের ভেতর অরাজকতা তৈরি করে দেশের ভাবমূর্তি নষ্ট করার অপচেষ্টা করছে। সরকারের উন্নয়নকে বাধাগ্রস্থ করার চেষ্টা করছে। এ বিষয়ে আমাদেরকে সতর্ক থাকতে হবে।

গাংনীতে ৪ ডেঙ্গু রোগী সনাক্ত

গাংনী প্রতিনিধি ॥ মেহেরপুরের গাংনীতে ৪জন ডেঙ্গু রোগী সনাক্ত করেছে স্বাস্থ্য বিভাগ জানায়। ডেঙ্গু আক্রান্তরা হলেন-গাংনী উপজেলা শহরের সরকারী মাধ্যমিক বালিকা উচ্চ বিদ্যালয় পাড়ার হোসেন আলীর স্ত্রী উম্বিয়া খাতুন (৩৪), উপজেলার কাথুলী গ্রামের জিন্নাত আলীর মেয়ে জান্নাতুল খাতুন (১৭), চৌগাছা সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষিকা ও চৌগাছা গ্রামের বাসিন্দা নাসিমা খাতুন (৪৭), ধানখোলা ইউনিয়ন পরিষদের সদস্যা ও কসবা গ্রামের বাসিন্দা সুফিয়া খাতুন (৪৮)। গতকাল বুধবার আক্রান্তরা গাংনী উপজেলা স্বাস্থ্যকমপ্লেক্স ও মেহেরপুর জেনারেল হাসপাতালে ভর্তি হয়। স্থানীয় ও পারিবারিক সূত্র জানায়, ডেঙ্গু আক্রান্ত জান্নাতুল দীর্ঘদিন ধরে লেখাপড়ার উদ্দেশে ঢাকায় অবস্থান করছিল। সেখানে অসুস্থ অনুভব করলে, বাড়ি চলে আসে। বাড়িতে এসে সে আরো অসুস্থ হলে, বুধবার তাকে দ্রুত উদ্ধার করে মেহেরপুর জেনারেল হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। এদিকে ডেঙ্গু আক্রান্ত ইউনিয়ন মেম্বার সুফিয়া বেগম জানান, আমি কয়েকদিন যাবত ঢাকায় এক রোগীর কাছে অবস্থান করছিলাম। ওই খান থেকে এ রোগের সৃষ্টি হয়েছে বলে মনে হচ্ছে। এছাড়াও আক্রান্ত আরো ২জনকে নিজ বাড়ি থেকে ডেঙ্গুতে আক্রান্ত করেছে বলে পরিবারিক সূত্র জানায়। স্বাস্থ্য বিভাগ সূত্র জানায়, আক্রান্তদের চিকিৎসা দেয়া হয়েছে। এখন অনেকটা সুস্থ্য রয়েছে।

দৌলতপুরে জাসদের সুশাসন দিবস পালন

দৌলতপুর প্রতিনিধি ॥ কুষ্টিয়ার দৌলতপুরে কেন্দ্রীয় জাসদের  ঘোষনা অনুযায়ী সুশাসন চুক্তি দিবস পালন উপলক্ষে মানববন্ধন ও জগনের মাঝে লিফলেট বিতরন করা হয়েছে। গতকাল বুধবার অনুষ্ঠিত এ কর্মসুচিতে উপস্থিত ছিলেন দৌলতপুর উপজেলা জাসদের সভাপতি সঈর উদ্দীন, সাধারন সম্পাদক আশরাফুল ইসলাম নান্নু মাষ্টার, যুগ্ন সম্পাদক রকিবুল ইসলাম মাষ্টার, সাংগঠনিক সম্পাদক সাইদুর রহমান, শিক্ষা বিষয়ক সম্পাদক হাফিজুর রহমান, কৃষি বিষয়ক সম্পাদক, আঃ আজিজ, শ্রমিক  নেতা সাইফুল ইসলাম, দৌলতপুর যুবজোটের সভাপতি চাঁদ মাহম্মদ, যুপ্ন সম্পাদক সিরাজুল ইসলাম, মাহবুব খান সালাম, মামুনর রশিদ, আতিয়ার রহমান, ফজল হক, মাহাবুল হক, ছাত্র  নেতা মশিউর রহমান বিকাশ ও খোকন।

খোকসায় ৩ দিনব্যাপী ফলদ বৃক্ষ মেলা উদ্বোধন ও র‌্যালী

খোকসা প্রতিনিধি ॥ কুষ্টিয়ায় খোকসায় উপজেলা কৃষি অফিসের আয়োজনে ফলদ বৃক্ষে মেলা-২০১৯ উদ্বোধন, র‌্যালী ও আলোচনা সভার আয়োজন করা হয়। গতকাল বুধবার দুপুরে এ উপলক্ষে উপজেলা চত্বর থেকে কুষ্টিয়া-৪ খোকসা-কুমারখালী সংসদ সদস্য ব্যারিষ্টার সেলিম আলতাফ জর্জ নেতৃত্বে এক বর্ণাঢ্য র‌্যালী উপজেলা শহর ঘুরে উপজেলা চত্বরে এসে শেষ হয়। পরে উপজেলা পরিষদ চত্বরে আলোচনা সভায় প্রধান অতিথি হিসাবে উপস্থিত থেকে ফলদ বৃক্ষ মেলা -২০১৯ উদ্বোধন করেন খোকসা-কৃমারখালী সংসদ সদস্য ব্যারিষ্টার সেলিম আলতাফ জর্জ। আনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন উপজেলা নির্বাহী অফিসার মাফফারা তাসনীন। অতিথি হিসাবে বক্তব্য রাখেন থানা অফিসার ইনচার্জ এবিএম মেহেদী মাসুদ, উপজেলা আওয়ামীলীগের সভাপতি বাবুল আখতার, উপজেলা প.প. কর্মকর্তা ডা. কামরুজ্জামান সোহেল, উপজেলা প্রাণী সম্পদ কর্মকর্তা গোপেস চন্দ্র সরকার, উপজেলা কৃষি অফিসার সবুজ কুমার সাহা, সাবেক উপজেলা মুক্তিযোদ্ধা কমান্ডার ফজলুল হক, জেলা পরিষদ সদস্য মোজাহেদুল ইসলাম বাবলু, উপজেলা আওয়ামীলীগের যুগ্ন-সাধারন সম্পাদক জিল্লুর রহমান প্রমখ। এ ছাড়াও উপজেলা বিভিন্ন দপ্তরের কর্মকর্তা, উপজেলা বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের প্রধান, ইউপি চেয়ারম্যান, সুধী, সাংবাদিক, কৃষক উপস্থিত ছিলেন। এ বছর উপজেলা চত্বরে তিন দিনব্যাপী ফলদ বৃক্ষ মেলায় ২০টি স্টলে বিভিন্ন জাতের চারা বিক্রয় করা হচ্ছে। পরে সংসদ সদস্য ব্যারিষ্টার সেলিম আলতাফ জর্জ মেলার বিভিন্ন ষ্টোল ঘুরে ঘুরে দেখেন।

কুষ্টিয়ার নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আদালতের রায়

৬ জনের যাবজ্জীবন ও ৬ জনের বিভিন্ন মেয়াদে কারাদন্ড

পোড়াদহের আ’লীগ কর্মী নুরুল হত্যা মামলায় ৫ জনের মৃত্যুদন্ড

নিজ সংবাদ ॥ কুষ্টিয়া মিরপুর থানার পোড়াদহ গ্রামে আধিপত্য বিস্তারকে কেন্দ্র করে দু’পক্ষের সংঘর্ষে আওয়ামীলীগ কর্মী নুরুল ইসলাম হত্যা ও অগ্নিকান্ডের অভিযোগে দায়ের করা মামলায় ৫ জনের মৃত্যুদন্ড, ৬ জনের যাবজ্জীবন আরো ৬ জনের বিভিন্ন মেয়াদে কারাদন্ডসহ প্রত্যেকের ৫০হাজার টাকা জরিমানার আদেশ দিয়েছেন আদালত। গতকাল বুধবার বেলা সাড়ে ১১টায় কুষ্টিয়া নারী ও শিশু নির্যাতন দমন বিশেষ আদালতের বিচারক মুন্সী মো: মশিয়ার রহমান এক জনাকীর্ণ আদালতে আসামীদের উপস্থিতিতে এই রায় ঘোষনা করেন। মৃত্যু দন্ডপ্রাপ্ত হলেন- মিরপুর উপজেলার পোড়াদহ গ্রামের মতিয়ার রহমানের ছেলে মাসুদ (৩৮), আনছার আলীর ছেলে পারভেজ (৪৩), সৈয়দ আলীর ছেলে হরিবর রহমান (৫২) সহোদর ফজলুর রহমান (৫৫) ও সরোয়ার হোসেন (৩৯)। যাবজ্জীবন সাজাপ্রাপ্তরা হলেন- বিল্লাল হোসেন (৪২), মঞ্জুর রহমান মঞ্জু (৩৪), সোহেল রানা (৩৮), রমিজ আলী (৪০) মতিয়ার রহমান (৫০) ও কবির হোসেন (৪৩)। একই মামলায় ভুট্টো, রকি, এনায়েত ও সালামকে ৩বছর এবং নান্নু ও ফরিদকে সাত বছর করে কারাদন্ডসহ প্রত্যেক সাজাপ্রাপ্তদের ৫০হাজার টাকা অর্থদন্ডে দন্ডিত করা হয়েছে।

মামলার এজাহার ও আদালত সূত্রে জানা যায়, ২০১৪ সালের ১৯ ডিসেম্বর বিকেলে মিরপুর উপজেলার পোড়াদহ এলাকার আওয়ামী লীগ কর্মী নরুল ইসলাম কামারডাঙ্গা থেকে বিকেল ৫টার দিকে পোড়াদহ বাজারে যাচ্ছিলেন। পথে পোড়াদহ স্কুলের সামনে থেকে আসামীরা ধারালো দেশী অস্ত্র দিয়ে নূরুল ইসলামকে এলোপাথাড়ী আঘাত করে । তাকে ২৫০ শয্যা বিশিষ্ট কুষ্টিয়া জেনারেল হাসপাতালে ভর্তি করা হলে রাতে মারা যান। এ ঘটনায় নিহতের ছেলে এজাহারকারী শাহিনুর রহমান সজিব বাদি হয়ে ১৯ জনের নাম উল্লেখ সহ আরো অজ্ঞাত ৫/৬জনের বিরুদ্ধে মিরপুর থানায় একটি হত্যা মামলা দায়ের করে। থানার মামলা নং-৮, তারিখ-২০-১২-২০১৪ইং। মামলাটি তদন্ত শেষে ঘটনায় জড়িতের অভিযোগে ৩০ এপ্রিল ২০১৫সালে ১৭জনের বিরুদ্ধে দ:বি: ৩০২, ৩০২/৩৪, ৩২৪ ও ৩২৫ ধারায় আদালতে চার্জশীট দাখিল করেন পুলিশ। পরে সেসন ৭২৬ নং মামলায় নথিভুক্ত হয়ে বিচার কাজ শুরু হয়।  রাষ্ট্র পক্ষে মামলা পরিচালনাকারী কুষ্টিয়া জজ কোর্টের পাবলিক প্রসিকিউটর (পিপি) এ্যাড. অনুপ কুমার নন্দী জানান- আসামীদের বিরুদ্ধে আনীত অভিযোগের চার্জ গঠন পূর্বক দীর্ঘ স্বাক্ষ্য শুনানী শেষে নুরুল ইসলাম হত্যায় আসামীদের জড়িত অভিযোগ সন্দেহাতীত প্রমানিত হওয়ায় এই রায় ঘোষনা করেন বিজ্ঞ আদালত। মৃত্যুদন্ড প্রাপ্তদের ধার্যকৃত প্রত্যেকের ৫০ হাজার টাকা জরিমানা পরিশোধ না করলে স্থাবর অস্থাবর সম্পত্তি বিক্রী করে পরিশোধ করতে বলা হয়েছে এবং কারাদন্ড প্রাপ্তদের ধার্যকৃত প্রত্যেকের ৫০হাজার টাকা জরিমানা অনাদায়ে আরো ১বছর কারাদন্ড ভোগ করতে হবে বলে নির্দেশ আদালতের। একই সাথে এ মামলায় এজাহারভুক্ত আসামী তরিকুল, আকরাম, আশরাফ, ইমরান ও ছালামদের বিরুদ্ধে আনীত অভিযোগ প্রমানিত না হওয়ায় তাদের  বে-কসুর খালাস দিয়েছেন আদালত। আসামী পক্ষে মামলাটি পরিচালনা করেন এ্যাড.অধ্যক্ষ আমিরুল ইসলাম ও এ্যাড.সূধীর কুমার শর্মা। রায় ঘোষনাকালে আদালতে উপস্থিত মামলার এজাহারকারী শাহিনুর রহমান সজিব আদালতের এই রায়ের প্রতি সন্তোষ প্রকাশ করে বলেন দ্রুত আসামীদের মৃত্যুদন্ড কার্যকর হলেই ন্যায় বিচার নিশ্চিত হবে।

শোকাবহ আগস্টের প্রথম দিন আজ

নিজ সংবাদ ॥ শোকাবহ আগস্টের প্রথম দিন আজ বৃহস্পতিবার। ১৯৭৫ সালের এ মাসেই বাঙালি হারিয়েছে হাজার বছরের শ্রেষ্ঠ সন্তান জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানকে। ২০০৪ সালের ২১ আগস্ট গ্রেনেড হামলা চালিয়ে হত্যা চেষ্টা হয়েছিল জাতির জনকের কন্যা আওয়ামী লীগ সভাপতি ও বর্তমান প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে। ভাগ্যক্রমে সেদিন তিনি বেঁচে গেলেও এই ঘটনায় সাবেক রাষ্ট্রপতি মো: জিল¬ুর রহমানের সহধর্মিনী, আওয়ামী লীগের সেই সময়ের মহিলা বিষয়ক সম্পাদিকা আইভি রহমানসহ ২৪ জন নিহত এবং পাঁচ শতাধিক নেতা-কর্মী আহত হন। পঁচাত্তরের পনেরই আগস্ট কালরাতে ঘাতকরা শুধু বঙ্গবন্ধুকেই হত্যা করেনি, তাদের হাতে একে একে প্রাণ দিয়েছেন বঙ্গবন্ধুর সহধর্মিনী বঙ্গমাতা বেগম ফজিলাতুন্নেছা মুজিব, বঙ্গবন্ধুর সন্তান শেখ কামাল, শেখ জামাল, শিশু শেখ রাসেলসহ পুত্রবধু সুলতানা কামাল ও রোজি জামাল। পৃথিবীর এই ঘৃণ্যতম হত্যাকান্ড থেকে বাঁচতে পারেননি বঙ্গবন্ধুর সহোদর শেখ নাসের, ভগ্নিপতি আবদুর রব সেরনিয়াবাত, ভাগ্নে শেখ ফজলুল হক মনি, তার সহধর্মিনী আরজু মনি ও কর্নেল জামিলসহ পরিবারের ১৬ জন সদস্য ও আত্মীয়-স্বজন। সেনাবাহিনীর কিছুসংখ্যক বিপদগামী সদস্য সপরিবারে জাতির পিতা বঙ্গবন্ধুকে হত্যা করার পর গোটা বিশ্বে নেমে আসে তীব্র শোকের ছায়া এবং ছড়িয়ে পড়ে ঘৃণার বিষবাষ্প। বঙ্গবন্ধুকে হত্যার পর নোবেল জয়ী পশ্চিম জার্মানীর নেতা উইলি ব্রানডিট বলেন, মুজিবকে হত্যার পর বাঙালিদের আর বিশ্বাস করা যায় না। যে বাঙালি শেখ মুজিবকে হত্যা করতে পারে তারা যেকোন জঘন্য কাজ করতে পারে। ভারত বংশোদ্ভূত ব্রিটিশ নাগরিক ও বিশিষ্ট সাহিত্যিক নীরদ সি চৌধুরী বাঙালিদের ‘বিশ্বাসঘাতক’ হিসেবে বর্ণনা করে বলেছেন, বাঙালি জাতির স্বপ্নদ্রষ্টা শেখ মুজিবকে হত্যার মধ্য দিয়ে বিশ্বের মানুষের কাছে নিজেদের আত্মঘাতী চরিত্রই তুলে ধরেছে। দ্য টাইমস অব লন্ডন এর ১৯৭৫ সালের ১৬ আগস্ট সংখ্যায় উলে¬খ বলা হয় ‘সবকিছু সত্ত্বেও বঙ্গবন্ধুকে সবসময় স্মরণ করা হবে। কারণ তাঁকে ছাড়া বাংলাদেশের বাস্তব কোন অস্তিত্ব নেই। একই দিন লন্ডন থেকে প্রকাশিত ডেইলি টেলিগ্রাফ পত্রিকায় বলা হয়েছে, ‘বাংলাদেশের লাখ লাখ লোক শেখ মুজিবের জঘন্য হত্যাকান্ডকে অপূরণীয় ক্ষতি হিসেবে বিবেচনা করবে।’ আওয়ামী লীগের সভাপতি মন্ডলীর সদস্য এবং সাবেক স্বাস্থ্যমন্ত্রী মোহাম্মদ নাসিম বলেন, বঙ্গবন্ধুর খুনীদের বিচারের রায় কার্যকর করে জাতি কলঙ্কমুক্ত হয়েছে। একইভাবে বাঙালির আত্মঘাতী চরিত্রের অপবাদেরও অবসান ঘটেছে। টেলিগ্রাফ পত্রিকার মন্তব্য প্রসঙ্গে তিনি বলেন, পত্রিকাটি সেদিন সুদূরপ্রসারী মন্তব্য করেছিল। দেশের মানুষ এখন অনুধাবন করতে পারে মুক্তিযুদ্ধের চেতনাকে নস্যাৎ করে দেশে পাকিস্তানি ভাবধারা ফিরিয়ে আনার লক্ষ্যেই স্বাধীনতার বিরোধীতাকারী এবং দেশী-বিদেশী ষড়যন্ত্রকারীরা বঙ্গবন্ধুকে হত্যা করেছিল। প্রতিবারের মত এবারও ১৫ আগস্টকে সামনে রেখে আগস্টের প্রথম দিন থেকেই শুরু হচ্ছে আওয়ামী লীগসহ সহযোগী ও ভ্রাতৃপ্রতীম সংগঠনগুলোর মাসব্যাপি কর্মসূচি। বিভিন্ন সামাজিক ও সাংস্কৃতিক সংগঠনও এ মাসে বিস্তারিত কর্মসূচি গ্রহণ করেছে। শোকের মাসের প্রথম দিন বৃহস্পতিবার মধ্য রাত ১২টা ১ মিনিটে প্রথম প্রহরে আলোর মিছিলের মধ্য দিয়ে মাসব্যাপী কর্মসূচি শুরু করবে স্বেচ্ছাসেবক লীগ। সংগঠনের সাধারণ সম্পাদক পংকজ দেবনাথ এমপি জানান, মিছিলটি ধানমন্ডি ৩২নং সড়ক ধরে বঙ্গবন্ধু স্মৃতি জাদুঘর অভিমুখে যাত্রা করবে। সকালে কৃষকলীগের উদ্যোগে অনুষ্ঠিত হবে স্বেচ্ছায় রক্তদান কর্মসূচী। বিকাল ৩টায় বঙ্গবন্ধু স্মৃতি জাদুঘর প্রাঙ্গণে এ কর্মসূচির উদ্বোধন করবেন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ও সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের। এ মাসের অন্যান্য কর্মসূচির মধ্যে রয়েছে বঙ্গমাতা বেগম শেখ ফজিলতুন্নেসা মুজিব, বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের বড় ছেলে শেখ কামালের জন্মদিন পালন, ১৭ আগস্ট দেশব্যাপী সিরিজ বোমা হামলা এবং ২১ আগস্ট ভয়াবহ গ্রেনেড হামলা দিবস স্মরণ এবং জাতীয় কবি কাজী নজরুল ইসলামের মৃত্যুবাষিকী পালন।

ইরানের বিশেষ বাহিনীর সঙ্গে অনন্ত জলিল

বিনোদন বাজার ॥ ছবিতে বিশেষ দৃশ্যের প্রয়োজনে সাধারণত ডামি ব্যবহার করে থাকেন নির্মাতারা। কিন্তু ঢাকাই ছবির নায়ক-প্রযোজক অনন্ত জলিলের ক্ষেত্রে সেটি ভিন্ন।তার ছবিতে সবকিছুই অরজিনাল হওয়া চা-ই চাই। এ যেমন, মারামারির দৃশ্যে তিনি কোনো ডামি ব্যবহার করেন না। নিজেই বিপজ্জনক সব দৃশ্যে শট দেন।সম্প্রতি নতুন ছবি ‘দিন : দ্য ডে’র ক্ষেত্রেও তার ব্যতিক্রম ঘটেনি। বাংলাদেশে শুটিংয়ের সময় উড়ন্ত হেলিকপ্টার থেকে নিজেই লাফ দিয়েছেন। কিছুদিন আগে ইরান থেকে শুটিং শেষ করে এসেছেন অনন্ত।

সেখানকার এয়ারপোর্টে শুটিং করেছেন, যেখানে এক প্রান্ত দিয়ে বিমান উঠানামা করছিল। শুটিংয়ে পুলিশের যে গাড়ি ব্যবহার করেছেন সেটাও কোনো ডামি নয়, একেবারে ইরান পুলিশের অরিজিনাল সশস্ত্র গাড়ি। ছবিতে অনন্ত বাংলাদেশ পুলিশের বিশেষ এজেন্ট হিসেবে অভিনয় করেছেন। ইরানে তিনি মিশন নিয়ে গেছেন।সেখানে তাকে বিভিন্ন অ্যাকশন দৃশ্যে যে ট্রুপ সহযোগিতা করেছেন তারা সত্যি সত্যিই ইরান পুলিশের বিশেষ বাহিনীর সদস্য।ছবিতে তাদের সঙ্গেই শুটিং চলাকালীন ক্যামেরাবন্দি হয়েছেন অনন্ত জলিল। এ প্রসঙ্গে তিনি বলেন, ‘যে কাজ আমি নিজে পারব সেটি অন্যকে (ডামি) দিয়ে করানোটা আমার পছন্দ নয়।তাছাড়া আমি যেটা করতে পারব সেটা অন্যরা আমার মতো করে করতে পারবে না। তারা তাদের মতোই করবেন। সেটা আমার মনমতো নাও হতে পারে।তাই ছবিতে অ্যাকশন দৃশ্যের শটগুলো আমি নিজেই করার চেষ্টা করি। ইরানে যে শুটিং করেছি সেখানে আমরা ডামি ব্যবহার করিনি বললেই চলে। সেখানকার প্রযোজনা সংস্থার কাছ থেকে সব ধরনের সহযোগিতা পেয়েছি। বিশেষ বাহিনীও আমাদের সহযোগিতা করেছে। দারুণ একটি কাজ হয়েছে। আশা করছি দর্শকরা এবার আগের চেয়েও ভিন্ন কিছু দেখতে পাবেন পর্দায়।’ ইরানের সঙ্গে যৌথ প্রযোজনায় নির্মিত ‘দিন : দ্য ডে’ ছবিটি পরিচালনা করছেন ইরানি পরিচালক মোস্তফা অতাশ জমজম।এরই মধ্যে ছবিটির ৭৫ ভাগ কাজ শেষ হয়েছে। বাকি অংশের শুটিং তুরস্কে করা হবে বলে জানিয়েছেন অনন্ত। ছবিতে তার বিপরীতে অভিনয় করছেন চিত্রনায়িকা বর্ষা। আরও রয়েছেন ইরান, আমেরিকা ও লেবাননের একঝাঁক অভিনয়শিল্পী।

শাকিব-বুবলীর ঈদের ছবি মুুক্তিতে বাধা নেই

বিনোদন বাজার ॥ ঈদুল আজহায় মুক্তি পেতে যাচ্ছে শাকিব খান ও বুবলী অভিনীত নতুন ছবি ‘মনের মতো মানুষ পাইলাম না’। মঙ্গলবার ছবিটিকে বিনা কর্তনে সেন্সর ছাড়পত্র দিয়েছে বাংলাদেশ চলচ্চিত্র সেন্সর বোর্ড। বিষয়টি জানালেন ছবির পরিচালক জাকির হোসেন রাজু। ছবি প্রসঙ্গে রাজু বলেন, ঈদে মুক্তি দেয়ার লক্ষ্যেই ছবিটি নির্মাণ করেছি। ছবির কাজ শেষ করে কিছুদিন আগে সেন্সর বোর্ডে জমা দিই। অবশেষে মঙ্গলবার সেন্সর বোর্ড ছবিটির সেন্সর ছাড়পত্র দেয়। সেন্সর বোর্ডের সদস্যরা ছবিটি দেখে প্রশংসা করেছেন। জাকির হোসেন রাজু আরো বলেন, এই ছবিটি একটি ভিন্ন গল্পের ছবি। এখানে আফসোস আছে, যা ছবির নাম থেকেই বোঝা যায়। প্রেম, ভালোবাসা আর পারিবারিক একটি গল্পের ছবি দেখতে পাবে দর্শক। ছবিটিতে প্রধান দুই চরিত্রে অভিনয় করেছেন শাকিব খান ও বুবলী। যদিও জাকির হোসেন রাজু এই ছবির ঘোষণা দিয়েছিলেন ২০১৩ সালে। করেছিলেন মহরত। তখন ছবিটিতে শাকিব খানের সঙ্গে অপু বিশ্বাসের অভিনয় করার কথা ছিল।

 

কুয়েতে বিক্রি হয়ে যাওয়া নারীকে যেভাবে উদ্ধার করলেন সানি

বিনোদন বাজার ॥ বীণা বেদি নাম তার। ভারতের গুরুদাসপুরের বাসিন্দা তিনি। কুয়েতে যেতে চেয়েছিলেন ভাগ্য বদলাতে। কিন্তু বাজে লোকের খপ্পরে পড়ে তিনি বিক্রি হয়ে গিয়েছিলেন এক পাকিস্তানির কাছে। অসহায় জীবনের মুখে পড়ে যাওয়া সেই নারীকে উদ্ধার করে তার পরিবারের কাছে ফিরিয়ে দিয়েছেন বলিউড অভিনেতা সানি দেওল। এই খবরটিই এখন ভাইরাল ভারতের গণমাধ্যমে। সবাই সানির মানবিকতার প্রশংসা করছেন। সানিকে বীর বলেও সম্মান ও স্যালুট জানাচ্ছেন অনেকে। জানা গেছে, এক ট্রাভেল এজেন্সির খপ্পরে পড়েছিলেন ৪৫ বছর বয়সী বীণা বেদি। তাকে পরিচারিকার কাজ দেয়ার আশ্বাস দিয়ে এক পাকিস্তানি ব্যক্তির কাছে বিক্রি করে দেয়া হয়। ওই ব্যক্তি ৩০ হাজার টাকা বেতনের কাজ দেয়ার আশ্বাস দিয়ে তাকে কুয়েতে নিয়ে গিয়েছিলেন। সেখানে কিছুদিন পরেই বীণার ওপর শুরু হয় অত্যাচার। তাকে ক্রীতদাস বানিয়ে রাখা হয়েছিল। এদিকে বীণাকে উদ্ধার করতে স্থানীয় সংসদ সদস্য সানির কাছে সাহায্য চায় তার পরিবারের সদস্যরা। বিষয়টি জানার পরই তৎপরতার সঙ্গে ব্যবস্থা নেন সানি। কুয়েতের এক স্বেচ্ছাসেবী সংস্থার সাহায্য নিয়ে সানি ভারতে ফিরিয়ে আনেন বীণা বেদিকে। এ যেন সিনেমারই গল্প! তবে সেই গল্পের নায়ক সানির প্রশংসায় পঞ্চমুখ ভারত। শুধু সাধারণ লোকই নয়, ছেলে সানির এমন কাজে উচ্ছ্বসিত তার বাবা অভিনেতা ধর্মেন্দ্রও। সোশ্যাল মিডিয়ায় এ খবর পোস্ট করে ছেলেকে আশীর্বাদ করেছেন তিনি। ছেলেকে তার পরামর্শ সানি যেন চাকরি ভেবেই তার কর্তব্যে অবিচল থাকেন।

 

উন্নত জাতের করলা চাষ পদ্ধতি

কৃষি প্রতিবেদক ॥ উচ্ছে ও করলা তিতা বলে অনেকেই খেতে পছন্দ করেন না। তবে এর ঔষধিগুণ অনেক বেশি। ডায়াবেটিস, চর্মরোগ ও কৃমি সারাতে এগুলো ওস্তাদসবজি। ভিটামিন ও আয়রন-সমৃদ্ধ এই সবজির অন্যান্য পুষ্টিমূল্যও কম নয়।

উচ্ছে ও করলা এ দেশের প্রায় সব জেলাতেই চাষ হয়। আগে শুধু গরমকালে উচ্ছে-করলা উৎপাদিত হলেও এখন জাতের গুণে প্রায় সারা বছরই চাষ করা যায়। যেগুলো অপেক্ষাকৃত ছোট, গোলাকার, বেশি তিতা, সেগুলোকে বলা হয় উচ্ছে। বড়, লম্বা ও কিছুটা কম তিতা স্বাদের ফলকে বলা হয় করলা। উচ্ছেগাছ ছোট ও কম লতানো হয়। করলাগাছ বেশি লতানো ও লম্বা লতাবিশিষ্ট, পাতাও বড়। উচ্ছে ও করলা তিতা বলে অনেকেই খেতে পছন্দ করেন না। তবে এর ঔষধিমূল্য অনেক বেশি। ডায়াবেটিস, চর্মরোগ ও কৃমি সারাতে এগুলো এক ওস্তাদসবজি। ভিটামিন ও আয়রন-সমৃদ্ধ এই সবজির অন্যান্য পুষ্টিমূল্যও কম নয়।

মাটি ঃ প্রায় সব রকমের মাটিতে ও পানি জমে না এমন জায়গায় উচ্ছে-করলার চাষ করা যায়। তবে জৈব পদার্থসমৃদ্ধ দো-আঁশ ও বেলে দো-আঁশ মাটিতে ভালো হয়। ছায়া জায়গায় ভালো হয় না।

জাত ঃ উচ্ছে ও করলা পরপরাগায়িত সবজি হওয়ায় এর জাত বৈচিত্রের শেষ নেই। এক জাত লাগালেও পরের বছর সে জাত থেকে রাখা বীজ লাগিয়ে হুবহু একই বৈশিষ্ট্যের ফল পাওয়া যায় না। তাই প্রতি মৌসুমেই বিশ্বস্ত উৎস থেকে ভালো জাতের ভালো বীজ সংগ্রহ করে এর চাষ করা উচিত। উচ্ছের প্রায় সব জাতই দেশী বা স্থানীয় । চাষিরাই এগুলোর বীজ রাখেন ও লাগান। এ দেশে করলার যেসব জাত রয়েছে সেগুলো হলো-

উচ্চফলনশীল জাত বারি করলা ১। বাংলাদেশ কৃষি গবেষণা ইনস্টিটিউট এ জাত উদ্ভাবন করেছে। এ জাতের একটি গাছে ২৫ থেকে ৩০টি করলা ধরে। হেক্টরপ্রতি ফলন ২৫ থেকে ৩০ টন (প্রতি শতকে ১০০ থেকে ১২০ কেজি)।

বিএডিসির ‘গজ করলা’ নামে আর একটি জাত আছে। এ জাতও ভালো, গাছপ্রতি ১৫  থেকে ২০টি করলা ধরে। ফলন ২০  থেকে ২৫ টন (প্রতি শতকে ৮০ থেকে ১০০  কেজি)। হাইব্রিড জাত বুলবুলি, টিয়া, প্যারট, কাকলি, প্রাইম-এক্সএল, টাইড, গ্রিন স্টার, গৌরব, প্রাইড ১, প্রাইড ২, গ্রিন রকেট, হীরা ৩০৪, মিনি, গুডবয়, ওয়াইজম্যান, জাম্বো, গজনি, ইউরেকা, হীরক, মানিক, মণি, জয়, কোড-বিএসবিডি ২০০২, কোড-বিএসবিডি ২০০৫, পেন্টাগ্রিন, ভিভাক, পিয়া, এনএসসি ৫, এনএসসি ৬, রাজা, প্রাচী ইত্যাদি।

জমি ও মাদা তৈরি ঃ জমি ভালোভাবে চাষ দিয়ে আগাছা পরিষ্কার করে প্রতি শতাংশে জমি তৈরির সময় ৪০ কেজি পচা গোবর সার মিশিয়ে দিতে হবে। মই দিয়ে সমান করার পর ১ মিটার চওড়া বেড করে তার মাঝে ৩০  সেন্টিমিটার চওড়া করে নালা কাটতে হবে। জমি যতটুকু লম্বা ততটুকুই লম্বা বেড হতে পারে। খুব  বেশি লম্বা হলে মাঝখানে খন্ড করা যেতে পারে। উচ্ছের ক্ষেত্রে ১ মিটার ও করলা ক্ষেত্রে ১.৫ মিটার দূরে দূরে মাদা তৈরি করতে হবে। সব দিকে ৪০ সেন্টিমিটার করে মাদা তৈরি করতে হবে। বীজ  বোনার ৭ থেকে ১০ দিন আগে মাদায় পচা গোবর ও সার মাদার মাটির সাথে মিশিয়ে দিতে হবে।

বীজ বোনা ঃ বছরের যেকোনো সময় এখন করলা লাগানো যায়। তবে খরিপ বা গ্রীষ্ম-বর্ষা মৌসুমে সবচেয়ে ভালো হয়। এ মৌসুমে চাষ করতে হলে ফেব্র“য়ারি থেকে মে মাসের মধ্যে বীজ বুনতে হবে। আগাম ফলন পেতে চাইলে ফেব্র“য়ারির মাঝামাঝি সময়ে বীজ বোনা ভালো। তবে উচ্ছে বসন্ত-গ্রীষ্মেই ভালো হয়। উচ্ছে চাষ করতে চাইলে জানুয়ারি থেকে মার্চ মাসের মধ্যে বীজ বুনতে হবে। করলার বীজ মার্চ থেকে জুন পর্যন্ত  বোনা যেতে পারে। প্রতি মাদায় দু’টি করে বীজ বুনতে হবে। বীজের খোসা শক্ত বলে বোনার আগের দিন রাতে পানিতে বীজ ভিজিয়ে রাখতে হবে, তাহলে ভালো গজাবে। তবে মাদায় সরাসরি বীজ না বুনে কলার ঠোঙা বা পলিব্যাগেও চারা তৈরি করে সেসব চারা মাদায় রোপণ করা যেতে পারে। সাধারণত ১০০ গ্রাম বীজে ৬০০ থেকে ৭০০টি চারা হয়। প্রতি শতকে ১২-১৫ গ্রাম উচ্ছে ও ২৫ থেকে ৩০ গ্রাম করলার বীজ লাগে।

সারের পরিমাণ ঃ করলা চাষে জৈবসার খুব দরকার। মোট জৈবসারের অর্ধেক জমি চাষের সময় ও বাকি অর্ধেক বীজ বোনা বা চারা লাগানোর ১০ দিন আগে মাদায় দিতে হবে। অন্যান্য সার নিচের ছক অনুযায়ী দিতে হবে।

 

বাউনি দেয়া ঃ চারা ২০ থেকে ২৫ সেন্টিমিটার লম্বা হয়ে গেলে চারার সাথে কাঠি পুঁতে বাউনি দেয়ার ব্যবস্থা করতে হবে। পাশাপাশি মাটি থেকে এক থেকে দেড় মিটার উঁচু করে মাচা তৈরি করতে হবে। যেহেতু বেড ১ মিটার চওড়া, সে জন্য মাচাও অনুরূপ চওড়া রাখলে ভালো হয়। এতে করলা তোলা ও পরিচর্যার কাজ সহজ হয়। বাঁশের শক্ত খুঁটি পুঁতে তার মাথায় জিআই তার, রশি ইত্যাদি বেঁধে খাঁচা তৈরি করে তার উপর দিয়ে পাটকাঠি বা বাঁশের সরু কাঠি ফাঁকা করে বিছিয়ে মাচা তৈরি করা যেতে পারে। মাটিতে লতিয়ে দেয়ার চেয়ে  মাচায় লতিয়ে দিলে করলার ফলন ২৫ থেকে ৩০ শতাংশ বেশি হয়।

সেচ ও আগাছা পরিষ্কার  ঃ মাদায় জো রেখে বীজ বুনতে হবে। চারা গজানোর পর মাদা শুকিয়ে গেলে সেচ দিতে হবে। সেচ দেয়ার পর মাটি চটা বেঁধে  গেলে তা নিড়ানি দিয়ে আগাছা পরিষ্কার করে  ভেঙে দিতে হবে। পানির অভাবে গাছের বাড়বাড়তি কমে যায়, ফুল ও কচি ফল ঝরে যায়, ফল ছোট হয়। সে জন্য খরা হলে বা জমি শুকিয়ে গেলে  সেচ দিতে হবে। প্রতিবার সার প্রয়োগের পর সেচ দিতে হবে। গাছের গোড়া থেকে ছোট  ছোট কিছু ডগা বের হয়।  সেগুলো ছেঁটে দিলে ফলন ভালো হয়। জমিতে যেন পানি জমতে না পারে সে দিকে খেয়াল রাখতে হবে।

করলা তোলা ঃ চারা গজানোর ৪০ থেকে ৫০ দিন পর থেকেই উচ্ছেগাছ ফল দেয়া শুরু করে। করলাগাছ ফল দেয়া শুরু করে ৬০ দিন পর। ফল আসা শুরু হলে গাছ থেকে প্রায় দু’মাস ফল তোলা যায়।

জেনিফার লোপেজ এবার গডমাদার

বিনোদন বাজার ॥ জেনিফার লোপেজকে এবার দেখা যাবে মাদকদ্রব্যের ব্যবসা করতে। সত্য ঘটনার ওপর নির্মিতব্য ‘দ্য গডমাদার’ সিনেমায় আশির দশকের কলাম্বিয়ান কোকেন ব্যবসায়ী গি¬সেন্ডা ব্ল্যাঙ্কোর ভূমিকায় অভিনয় করবেন জেনিফার লোপেজ। ‘কোকেন কাউবয়েজ’ ডকুমেন্টারির থেকে অনুপ্রাণিত হয়ে নির্মাণ করা হচ্ছে এই ছবিটি। মার্ক ওয়ালবার্গ এর প্রযোজনা করার কথা ছিল ‘দ্য গডমাদার’ ছবিটি। কিন্তু তার জন্য অপেক্ষা করে সাড়া না পেয়ে শেষ পর্যন্ত জেনিফার লোপেজ নিয়েই প্রযোজনার দায়িত্ব নিয়েছেন। সেইসঙ্গে ছবির মূল একটি চরিত্রে অভিনয় করবেন তিনি। গি¬সেন্ডা ব¬্যাঙ্কোর চরিত্রে অভিনয়ের সুযোগ পেয়ে লুফে নিয়েছেন জেনিফার লোপেজ। তিনি জানিয়েছেন, এই চরিত্রের প্রতি তার আগ্রহ ছিল আগে থেকেই। তাই সুযোগ হাতছাড়া করেননি। ছবির গল্প ভালো লেগেছে। তিনি এই খল চরিত্রটিকে পর্দায় ফুটিয়ে তোলার জন্য অধীর আগ্রহে অপেক্ষা করছেন। গি¬সেন্ডা ব¬্যাঙ্কোকে অপরাধ জগত চিনে ‘লা মাদ্রিনা’ নামে। তিনি মায়ামি, নিউইয়র্ক এবং ক্যালিফোর্নিয়ার মাদক ব্যবসা নিয়ন্ত্রণ করতেন। তার জীবনের উত্থান-পতন নিয়ে নির্মাণ করা হবে ছবিটি। সেইসঙ্গে দেখানো হবে তিনি তার আশপাশের পুরষদের কীভাবে মাদক ব্যবসা গড়ে তুলতে প্ররোচিত করেছেন সেই বিষয়গুলো।

রিয়ালকে হারিয়ে আউডি কাপের ফাইনালে টটেনহ্যাম

ক্রীড়া প্রতিবেদক ॥ রিয়াল মাদ্রিদকে ১-০ গোলে হারিয়ে প্রস্তুতিমূলক টুর্নামেন্ট আউডি কাপের ফাইনালে উঠেছে টটেনহ্যাম হটস্পার। আলিয়াঞ্জ অ্যারেনায় মঙ্গলবার সেমি-ফাইনালে ২২তম মিনিটে নিজেদের ভুলে পিছিয়ে পড়ে রিয়াল। মার্সেলোর ভুল পাসে বল ধরে ডি-বক্সে ঢুকে কোনাকুনি শটে ম্যাচের একমাত্র গোলটি করেন ইংলিশ ফরোয়ার্ড হ্যারি কেইন। নতুন মৌসুম শুরুর আগে এই নিয়ে তিনটি প্রস্তুতিমূলক ম্যাচে হারল রিয়াল। এর আগে ইন্টারন্যাশনাল চ্যাম্পিয়ন্স কাপে বায়ার্ন মিউনিখের কাছে ৩-১ ও আতলেতিকো মাদ্রিদের কাছে ৭-৩ গোলে হেরেছিল জিনেদিন জিদানের দল। এই দুই হারের মাঝে প্রতিযোগিতাটির অন্য ম্যাচে আর্সেনালকে টাইব্রেকারে হারিয়েছিল মাদ্রিদের ক্লাবটি। চ্যাম্পিয়ন্স লিগের গতবারের রানার্সআপ টটেনহ্যাম বুধবারের ফাইনালে খেলবে বায়ার্ন মিউনিখের বিপক্ষে। দ্বিতীয় সেমি-ফাইনালে টমাস মুলারের হ্যাটট্রিকে তুরস্কের ক্লাব ফেনেরবাচকে ৬-১ গোলে উড়িয়ে দেয় স্বাগতিকরা।

 

পুলিশ অফিসার হয়ে আসছেন আসিফ

বিনোদন বাজার ॥ কণ্ঠশিল্পী আসিফ আকবর এবার একজন পুলিশ অফিসারের ভূমিকায় অবতীর্ণ হচ্ছেন। একটা গানের মিউজিক ভিডিওতেই তাকে এমন চরিত্রে দেখা যাবে। গানটির অডিও ভার্সন আগেই রিলিজ হয়েছিল। এখানে তার সহশিল্পী ছিলেন পূজা। গত ২৮ ও ২৯ জুলাই রাজধানীর উত্তরায় ‘আমি তুমিময়’ গানটির মিউজিক ভিডিও নির্মাণ সম্পন্ন হয়েছে। এটি নির্মাণ করেছেন ভিকি জাহেদ। গানটিতে মিউজিক ভিডিওতে আসিফ আকবরের সঙ্গে মডেল হয়েছেন সালহা খানম নাদিয়া। গানটি প্রসঙ্গে আসিফ আকবর বলেন, গানটি আগেই প্রকাশিত হওয়ার কারণে শ্রোতা, ভক্তদের কাছ থেকে সাড়া পেয়েছি। তাদের আগ্রহের কারণেই এবার গানটির মিউজিক ভিডিও নির্মিত হলো। ভিকি জায়েদ’র কাজ সব সময়ই আমার কাছে ভীষণ ভালো লাগে। কারণ তার গল্পের শেষ অংশে একটা টুইস্ট থাকে। এতে আমার সঙ্গে দ্বিতীয়বারের মতো মডেল হয়েছেন নাদিয়া। আমার বিশ্বাস মিউজিক ভিডিওটি প্রকাশ পেলে গানটির জনপ্রিয়তা নিশ্চয়ই আরো বাড়বে। ‘আমি তুমিময়’র মিউজিক ভিডিওটি সিডি চয়েজের ইউটিউব চ্যানেলে ঈদে প্রকাশ হবে। এরই মধ্যে আসিফ ‘দেবদাস’ গানের মিউজিক ভিডিওর কাজও সম্পন্ন করেছেন।

‘কতো ভালোবাসি তোরে’ এখন ইউটিউবে

বিনোদন বাজার ॥ নশফিক তুহিন এর কথা, সুর ও সংগীত পরিচালনায় ইমরান এবং স্বরলিপি এর গাওয়া “কতো ভালোবাসি তোরে” গানটি ইউটিউবে মুক্তি পেলো। শাকিব খান এবং বুবলি অভিনীত, জাকির হোসেন রাজু পরিচালিত “মনের মতো মানুষ পাইলাম না” চলচ্চিত্রে স্থান পেয়েছে গানটি। রোমান্টিক এই গানটি চিত্রায়িত হয়েছে তুরুস্কে। “মনের মতো মানুষ পাইলাম না” এমন একটি ভালো চলচ্চিত্রে গান গাওয়া প্রসঙ্গে কন্ঠ শিল্পী স্বরলিপি বলেন- শফিক তুহিন এর অসাধারন কথা, সুর সংগীত পরিচালনায় গানটি গায়তে পেরে খুব ভালো লাগছে। রোমান্টিক ধাঁচের এমন একটি অসাধারণ গান গাওয়ানোর জন্য শফিক তুহিন ভাই এর কাছে কৃতজ্ঞ আমি। উল্লেখ্য আগামী কুরবানী ঈদে “মনের মতো মানুষ পাইলাম না” চলোচিত্রটি মুক্তি পাওয়ার কথা রয়েছে।

আর্জেন্টিনার কোচের মেয়াদ বাড়ল

ক্রীড়া প্রতিবেদক ॥ আর্জেন্টিনার কোচ লিওনেল স্কালোনির মেয়াদ বাড়িয়েছে দেশটির ফুটবল অ্যাসোসিয়েশন (এএফএ)। ২০২২ কাতার বিশ্বকাপের বাছাইপর্বে দলের দায়িত্বে থাকবেন তিনি। মঙ্গলবার স্কালোনির চুক্তির মেয়াদ বাড়ানোর কথা জানায় এএফএ। তরুণ এই কোচের অধীনে এ বছর ব্রাজিলে হওয়া কোপা আমেরিকায় তৃতীয় স্থান অর্জন করে আর্জেন্টিনা। এএফএ এক বিবৃতিতে জানায়, আগামী বছর শুরু হতে যাওয়া কাতার বিশ্বকাপের বাছাইপর্বে কোচ হিসেবে কাজ করে যাবেন লিওনেল স্কালোনি। গত বছর রাশিয়া বিশ্বকাপের ব্যর্থতার দায় নিয়ে চাকরি হারানো হোর্হে সাম্পাওলির জায়গায় অর্ন্তবতীকালীন কোচ হিসেবে স্কালোনিকে দায়িত্ব দেয় আর্জেন্টাইন ফুটবল অ্যাসোসিয়েশন। আগামী ৫ সেপ্টেম্বর যুক্তরাষ্ট্রে এক প্রীতি ম্যাচে চিলির মুখোমুখি হবে আর্জেন্টিনা। পাঁচ দিন পর আরেক প্রীতি ম্যাচে মেক্সিকোর বিপক্ষে খেলবে দুইবারের বিশ্বচ্যাম্পিয়নরা।

ভারতকে হারিয়ে শীর্ষে বাংলাদেশের যুবারা

ক্রীড়া প্রতিবেদক ॥ পারভেজ হোসেনের দাপুটে ফিফটির পরও বিপদে পড়ে গিয়েছিল বাংলাদেশ অনূর্ধ্ব-১৯ দল। বারবার রঙ পাল্টানো ম্যাচে দলকে পথ দেখালেন আকবর আলী। অধিনায়কের দৃঢ়তায় ভারত অনূর্ধ্ব-১৯ দলকে হারাল বাংলাদেশ। যুব ত্রিদেশীয় টুর্নামেন্টে ডাকওয়ার্থ ও লুইস পদ্ধতিতে ২ উইকেটে জিতে শীর্ষে উঠে এসেছে আকবরের দল। ৩৬ বলে ৫ চার ও দুই ছক্কায় ৪৯ রানে অপরাজিত থাকেন অধিনায়ক। বারবার বৃষ্টির বাধায় পড়া ম্যাচের দৈর্ঘ্য নেমে আসে ৩৬ ওভারে। ভারত ৫ উইকেটে করে ২২১ রান। ডাকওয়ার্থ ও লুইস পদ্ধতিতে বাংলাদেশ পায় ৩৩৪ রানের লক্ষ্য। আকবরদের ইনিংসের ষষ্ঠ ওভারে বৃষ্টি নামলে তারা পায় ৩২ ওভারে ২১৮ রানের লক্ষ্য। ৩ বল বাকি থাকতে যা ছুঁয়ে ফেলে বাংলাদেশ। এসেক্সে বুধবার টস হেরে ব্যাট করতে নেমে শুরুটা ভালো হয়নি ভারতের। ৭ চারে ৪৪ রানের ইনিংসে শুরুর ধাক্কা সামাল দেন কামরান ইকবাল। প্রাগনেশ দুর্গেশ কানপিলেওয়ার ও অধিনায়ক ধ্র“ত জুরেলের ফিফটিতে লড়াইয়ের পুঁজি গড়ে আগের দেখায় বাংলাদেশকে হারানো ভারত। ৬৯ বলে ৫৩ রান করা কানপিলেওয়ারকে কট বিহাইন্ড করে যুব ওয়ানডেতে নিজের প্রথম উইকেট নেন অভিষিক্ত শাহিন আলম। ৬৬ বলে ৭ চার ও দুই ছক্কায় ৭০ রান করা জুরেলকে ফেরান শরিফুল ইসলাম। শেষের দিকে একটি করে ছক্কা ও চারে ২১ রানে অপরাজিত থাকেন সামির রিজভি। রান তাড়ায় শুরুতেই তানজিদ হাসানকে হারায় বাংলাদেশ। থিতু হয়েও ইনিংস বড় করতে পারেননি মাহমুদুল হাসান। ৪৫ বলে ৬ চার ও এক ছক্কায় ৫১ রানের বিস্ফোরক ইনিংস খেলেন পারভেজ। তিন চারে ৩০ রান করেন তৌহিদ হৃদয়। তিন রানের মধ্যে এই দুই ব্যাটসম্যানের সঙ্গে শাহাদাত হোসেন ফিরলে চাপে পড়ে যায় বাংলাদেশ। শামিম হোসেন ও মৃত্যুঞ্জয় চৌধুরীকে নিয়ে দলকে এগিয়ে নেন আকবর। জয়ের জন্য শেষ ২ ওভারে প্রয়োজন ছিল ১৯ রান। ৩১তম ওভারের শেষ দুই বলে ছক্কা ও চার হাঁকিয়ে ম্যাচ বাংলাদেশের দিকে নিয়ে আসেন অধিনায়ক। পরের ওভারে ফ্রি-হিটে বাউন্ডারি হাঁকিয়ে দলকে এনে দেন টুর্নামেন্টে তৃতীয় জয়। ইংল্যান্ডের বিপক্ষে আগের দুই দেখাতেই জিতেছে বাংলাদেশ। ভারতের বিপক্ষে হেরেছে একটিতে, পরিত্যক্ত হয়েছে অন্য ম্যাচ। ৫ ম্যাচে ৭ পয়েন্ট নিয়ে শীর্ষে আছে বাংলাদেশ। সমান ম্যাচে ৫ পয়েন্ট নিয়ে দুই নম্বরে আছে ভারত। ৪ ম্যাচে ২ পয়েন্ট নিয়ে তলানিতে আছে স্বাগতিক ইংল্যান্ড। সংক্ষিপ্ত স্কোর: ভারত অনূর্ধ্ব-১৯ দল: ৩৬ ওভারে ২২১/৫ (কামরান ৪৪, জয়সাল ১১, কানপিলেওয়ার ৫৩, জুরেল ৭০, সামির ২১*, রাওয়াত ৪, করন ৯*; শরিফুল ২/৪৯, মৃত্যুঞ্জয় ১/৫২, শাহিন ১/৩৩, শামিম ১/৩০, রাকিবুল ০/৪৮, হৃদয় ০/৮)। বাংলাদেশ অনূর্ধ্ব-১৯ দল: (লক্ষ্য ৩২ ওভার ২১৮) ৩১.৩ ওভারে ২১৯/৮ (তানজিদ ৪, পারভেজ ৫১, মাহমুদুল ২০, হৃদয় ৩০, শাহাদাত ১, আকবর ৪৯*, শামিম ২২, মৃত্যুঞ্জয় ১৬, রাকিবুল ৪, শরিফুল ১*; কার্তিক ০/৬০, মিশ্র ৩/৪৭, পুর্নাক ২/৪৭, বিষ্ণুই ২/২৫, করন ১/৩৭)। ফল: ডাকওয়ার্থ ও লুইস পদ্ধতিতে বাংলাদেশ ২ উইকেটে জয়ী।

বিপিএলে রংপুর রাইডার্সে যোগ দিলেন সাকিব

ক্রীড়া প্রতিবেদক ॥ এবার বিপিএলের সপ্তম আসরে ঢাকা ডায়নামাইটস ছেড়ে রংপুর রাইডার্সে যোগ দিলেন বিশ্বসেরা অলরাউন্ডার সাকিব আল হাসান। রংপুর রাইডার্সের আইকন ক্রিকেটার হিসেবে খেলবেন তিনি। বুধবার দুপুরে সাকিব আল হাসান নিজেই এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন। সর্বশেষ আসরে রংপুরের অধিনায়ক ছিলেন মাশরাফি। তবে কি মাশরাফি রংপুর রাইডার্সকে না করে দিয়েছেন। নাকি তিনি অন্য কোন দলে যাবেন। মাশরাফি এর আগে আন্তর্জাতিক ক্রিকেট ছাড়লেও বিপিএল খেলে যাওয়ার আশা ব্যক্ত করেন। তবে কী মাশরাফি সব ধরণের ক্রিকেট থেকে অবসর নিচ্ছেন? সব প্রশ্নের উত্তরই জানা যাবে। কেবল সময়ের অপেক্ষা। চলতি বছরের ৩ ডিসেম্বর জাঁকজমকপূর্ণভাবে বিপিএলের উদ্বোধনী অনুষ্ঠান করার সিদ্ধান্ত নিয়েছে বিসিবি। দুই দিনের বিরতি দিয়ে ৬ ডিসেম্বর থেকে মাঠে গড়াবে খেলা। বিপিএলের সপ্তম আসরের উদ্বোধনী ম্যাচ হবে ওই দিন।