বি. চৌধুরীর বিবৃতি

জোট নেতাদের সম্পর্কে প্রধানমন্ত্রীর মন্তব্য শোভন নয়

ঢাকা অফিস ॥ যুক্তফ্রন্টের চেয়ারম্যান ও বিকল্পধারা বাংলাদেশের সভাপতি এ কিউ এম বদরুদ্দোজা চৌধুরী বলেছেন, রোববার সংবাদ সম্মেলনে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা যুক্তফ্রন্ট ও গণফোরাম নেতাদের সম্পর্কে যে মন্তব্য করেছেন তা শোভন হয়নি। তিনি বলেছেন, এসব মন্তব্যের জবাব দেওয়ার থাকলেও এই মুহূর্তে তার প্রয়োজন নেই। প্রধানমন্ত্রীর সাম্প্রতিক বক্তব্যের প্রতিক্রিয়ায় বি. চৌধুরী গতকাল মঙ্গলবার গণমাধ্যমে দেওয়া এক বিবৃতিতে এ কথা বলেন। তিনি বলেন, ‘প্রধানমন্ত্রী যুক্তফ্রন্ট ও গণফোরামের ঐক্য সম্পর্কে বক্তব্যের যে অংশে ইতিবাচক মন্তব্য করেছেন তার জন্য তাঁকে অভিনন্দন জানাই। প্রধানমন্ত্রীর ইতিবাচক কথাগুলোকে কথার কথা না দেখে কার্যক্ষেত্রে প্রমাণ করার প্রচেষ্টা হিসেবে দেখতে চাই।’ বদরুদ্দোজা চৌধুরী একাদশ জাতীয় নির্বাচনের সময় নিরপেক্ষ সরকার ও নিরপেক্ষ নির্বাচন কমিশন গঠন এবং সংসদ অন্তত দুই মাস আগে ভেঙে দেওয়া, সভা, সমাবেশ, মিছিল, প্রচারণায় বাধা না দেওয়া এবং রাজবন্দীদের মুক্তি দেওয়ার আহ্বান জানান। তিনি বলেন, ‘আমরা আশা করি, সকল গণতান্ত্রিক শক্তির মধ্যে বৃহত্তর একতা সৃষ্টির লক্ষ্যে আমাদের প্রচেষ্টাকে প্রতিহত করার চেষ্টা করা হবে না।’ যুক্তফ্রন্টের চেয়ারম্যান বিবৃতিতে সরকারি আদেশে নিষিদ্ধ টেলিভিশন চ্যানেল ও সংবাদপত্র মুক্ত করে সমস্ত সংবাদপত্র ও টিভি চ্যানেলকে স্বাধীনভাবে কাজ করতে দেওয়া এবং গণতান্ত্রিক আবহ সৃষ্টির গ্যারান্টি চান। বি. চৌধুরী বলেন, সুষ্ঠু নির্বাচনের প্রয়োজনে নির্বাচনের আগে ৩০ দিন এবং নির্বাচনের পর ১০ দিন মোট ৪০ দিন সামরিক বাহিনীকে ম্যাজিস্ট্রেসি ক্ষমতাসহ শান্তি-শৃঙ্খলা রক্ষার দায়িত্ব দিতে হবে।

কলকাতায় সেতুধসে নিহত ৫

ঢাকা অফিস ॥ পশ্চিমবঙ্গে দক্ষিণ কলকাতার তারাতলা-ডায়মন্ড হারবার সড়কের মাঝেরহাট সেতুর একাংশ গতকাল মঙ্গলবার বিকেলে আচমকা ভেঙে পড়েছে। এতে বহু মানুষের জীবনহানির আশঙ্কা দেখা দিয়েছে। এ পর্যন্ত পাঁচজনের মৃত্যুর কথা বলেছে রাজ্য সরকার। গুরুতর আহত হয়েছে ৯ জন। তবে এ কথাও বলা হয়েছে, বেশ কিছু মানুষ সেতুর নিচে আটকে থাকতে পারে। মাঝেরহাটের এই সেতুর নিচ দিয়ে চলে গেছে শিয়ালদহ বজবজ শাখার রেললাইন। দুর্ঘটনার পর বন্ধ হয়ে গেছে ট্রেন চলাচল। বন্ধ হয়ে গেছে তারাতলা-ডায়মন্ড হারবার সড়কে যান চলাচল। গতকাল বিকেলে এই সেতুটি যখন আচমকা ভেঙে পড়ে, তখন ভাঙা অংশের ওপর ছিল ১টি বাস, ১টি লরি, ৫টি গাড়ি এবং কয়েকটি মোটরসাইকেল। প্রত্যক্ষদর্শী ব্যক্তিরা জানিয়েছেন, দুর্ঘটনার সময় সেতুর নিচে বহু মানুষ অবস্থান করছিলেন। ছিলেন অসংখ্য শ্রমিকও। এই শ্রমিকদের বাসস্থান ছিল এই সেতুর নিচে। সেতুর নিচে একটি খালও ছিল। দুর্ঘটনার পর পুলিশ, দমকল বাহিনী, বিপর্যয় মোকাবিলা কমিটির সদস্যরা উদ্ধার কাজে অংশ নেন। অংশ নিয়েছে সেনাবাহিনী ও সিআইএসএফের জওয়ানরা। ক্রেন ও সরঞ্জাম দিয়ে শুরু হয়েছে উদ্ধার কাজ। এই দুর্ঘটনার খবর শুনে ঘটনাস্থলে যান পশ্চিমবঙ্গের পৌরমন্ত্রী ফিরহাদ হাকিম, কলকাতার পুলিশ কমিশনার রাজীব কুমারসহ দমকল মন্ত্রী । পুলিশ বলেছে, সেতুর নিচে বহু মানুষ আটকে থাকতে পারে। তবে ইতিমধ্যে আহত ১১ জনকে কলকাতার পিজি হাসপাতাল ও সিএমআরআই হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হয়েছে। বিধ্বস্ত সেতুর ধ্বংসাবশেষ না সরানো পর্যন্ত জানা যাচ্ছে না কত মানুষ সেতুর নিচে চাপা পড়ে আছে। মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় গতকাল দার্জিলিংয়ে ছিলেন। সেখান থেকে এক বার্তায় তিনি জানিয়েছেন, দ্রুতগতিতে উদ্ধার কাজ চলছে। আহত লোকজনের চিকিৎসার দায়িত্ব নেবে রাজ্য সরকার। তিনি দার্জিলিংয়ের সফর কাটছাঁট করে কলকাতায় ফিরেছেন।

মিরপুরে অস্ত্র ব্যবসায়ী গ্রেফতার

মিরপুর প্রতিনিধি ॥ কুষ্টিয়ার মিরপুরে  ১টি দেশীয় তৈরী শাটারগান ও ১রাউন্ড গুলিসহ হাদিউজ্জামান (৩৮) নামে এক অস্ত্র ব্যবসায়ীকে গ্রেফতার করেছে মিরপুর থানা পুলিশ। মঙ্গলবার রাত পৌনে ৮টার সময় উপজেলার ফুলবাড়ীয়া ইউনিয়নের ফুলবাড়ীয়া মাধ্যমিক বিদ্যালয় মাঠ থেকে তাকে  গ্রেফতার করা হয়।  হাদিউজ্জামান ফুলবাড়ীয়া ইউনিয়নের কামিরহাট গ্রামের হস্তুল্লাহ মন্ডলের পূত্র বলে জানা গেছে। মিরপুর থানার অফিসার ইনচার্জ রফিকুল ইসলাম জানান, হাদিউজ্জামান অস্ত্র ব্যবসার সাথে জড়িত। এমন গোপন সংবাদের ভিত্তিতে মিরপুর থানা পুলিশে নেতৃত্বে ওই এলাকায় অভিযান চালানো হয়। এসময় ফুলবাড়ীয়া মাধ্যমিক বিদ্যালয় মাঠ থেকে অস্ত্র ও গুলি সহ হাদিউজ্জামানকে গ্রেফতার করা হয়েছে। এ ঘটনায় মিরপুর থানায় মামলার প্রস্তুতি চলছে বলে জানান ওসি রফিকুল ইসলাম। পুলিশ জানায়, অভিযানের সময় ওইস্থান থেকে আরো দুই তিন জন পালিয়ে যায়।

 

ঝিনাইদহে দুইজনের লাশ উদ্ধার

ঝিনাইদহ প্রতিনিধি ॥ ঝিনাইদহের কালীগঞ্জের ফুলবাড়িয়া গেট ও হরিণাকুন্ডু উপজেলার মান্দিয়া গ্রামের মাঠ থেকে মঙ্গলবার সকালে দুইটি লাশ উদ্ধার করেছে পুলিশ। উদ্ধারকৃত লাশের মধ্যে একজনের পরিচয় মিলেছে। তিনি হলেন ঝিনাইদহের হরিণাকুন্ডু উপজেলার কালাপাড়িয়া আবাসন কলোনীর তোয়াজ উদ্দীন (৬০)। ক্যানালে মাছ ধরার সময় তাকে মান্দিয়া গ্রামের হাওড়ের ক্যানালে সন্ত্রাসীরা গলা কেটে হত্যা করে। একটি হত্যা মামলার আসামী নিহত তোয়াজ উদ্দীন হরিণাকুন্ডুর কালাপাড়িয়া আবাসন কলোনীর মৃত দরাপ আলীর ছেলে। এদিকে ঝিনাইদহের কালীগঞ্জে অজ্ঞাত (৪৫) এক ব্যক্তির লাশ উদ্ধার করেছে পুলিশ। মঙ্গলবার ১০টার দিকে উপজেলার ফুলবাড়ী রাস্তার পাশ থেকে মৃতদেহটি উদ্ধার করা হয়। বারোবাজার পুলিশ ক্যাম্পের আইসি এসআই শিহাব উদ্দীন জানান, এলাকাবাসী সকালে ফুলবাড়ী রাস্তার পাশে অজ্ঞাত এক ব্যক্তির লাশ পড়ে থাকতে দেখে পুলিশকে খবর দেয়। পরে পুলিশ লাশটি উদ্ধার করে। কালীগঞ্জ থানার ওসি মিজানুর রহমান খান বলেন, হয়তো রাতে রাস্তা পার হওয়ার সময় দুর্ঘটনায় অজ্ঞাত ব্যক্তির মৃত্যু হতে পারে। তবে প্রত্যাক্ষদর্শীরা জানান, দেখে মনে হচ্ছে মাথায় গুলি করে হত্যা করা হয়েছে। তাদের ধারণা এর আগেও ফুলবাড়িয়া এলাকায় একাধিক ব্যক্তির গুলিবিদ্ধ লাশ পেয়েছে পুলিশ। এদিকে হরিণাকুন্ডু থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা ওসি-তদন্ত আসাদুজ্জামান  জানান, হরিণাকুন্ডুতে নিহত তোয়াজ উদ্দিন ভূমিহীন এলাকায় দ্বিতীয় স্ত্রী নিয়ে থাকতেন। সেই সাথে বাঁওড়ে মাছ ধরে জীবিকা নির্বাহ করতেন। রাতে কে বা কারা তাকে ধারালো অস্ত্র দিয়ে কুপিয়ে হত্যা করে ফেলে রেখে যায়। হরিণাকুন্ডু থানার এসআই আব্দুল আওয়াল ঘটনাস্থল থেকে সাংবাদিকদের জানান, ৩ বছর আগে একই স্থানে হক আলী নামে এক ব্যক্তিকে দুর্বৃত্তরা খুন করে। ওই মামলার আসামী ছিলেন তোয়াজ উদ্দীন। ধারণা করা হচ্ছে হক আলী হত্যার জের ধরেই তাকে খুন করা হতে পারে। লাশ দুইটি উদ্ধার করে মঙ্গলবার দুপুরে লাশ ময়না তদন্তের জন্য ঝিনাইদহ সদর হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে।

শতবছর মেয়াদী ডেল্টা প্ল্যানের অনুমোদন দিল এনইসি

ঢাকা অফিস ॥ জলবায়ু পরিবর্তনের প্রেক্ষিতে পানিসম্পদ ব্যবস্থাপনা, খাদ্য ও পানির নিরাপত্তা এবং প্রাকৃতিক দূর্যোগ মোকাবেলায় তৈরি হওয়া শত বছরের ব-দ্বীপ পরিকল্পনা বা ডেল্টা  প্ল্যান অনুমোদন দিয়েছে জাতীয় অর্থনৈতিক পরিষদ (এনইসি)। পরিকল্পনাটি বাস্তবায়ন শুরু হলে প্রথম পর্যায়ে ২০৩০ সালের মধ্যে ১ দশমিক ৫ শতাংশ জিডিপি প্রবৃদ্ধি হবে। গতকাল মঙ্গলবার রাজধানীর শেরেবাংলানগর এনইসি সম্মেলন কক্ষে এনইসি চেয়ারপারসন ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সভাপতিত্বে জাতীয় অর্থনৈতিক পরিষদের (এনইসি) বৈঠকে এ অনুমোদন দেয়া হয়। বৈঠকে পরিকল্পনাটি সম্পর্কে বিস্তারিত তুলে ধরেন পরিকল্পনা কমিশনের সাধারণ অর্থনীতি বিভাগের সদস্য ড. শামসুল আলম। বৈঠক শেষে সাংবাদিকদের ব্রিফ করেন পরিকল্পনামন্ত্রী আ হ ম মুস্তফা কামাল। এ সময় অর্থ ও পরিকল্পনা প্রতিমন্ত্রী এম এ মান্নান, পরিকল্পনা সচিব জিয়াউল ইসলাম, আইএমইডির সচিব মফিজুল ইসলাম প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন। পরিকল্পনামন্ত্রী বলেন, এটি একটি ঐতিহাসিক পরিকল্পনা। পৃথিবীর কোথাও এত দীর্ঘ পরিকল্পনা হয়নি। বাংলাদেশে এটিই প্রথম। পরিকল্পনার মাধ্যমে দেশের সবচেয়ে বড় পানি সম্পদকে কাজে লাগিয়ে অর্থনৈতিক অগ্রগতিকে টেকসই করা হবে। এছাড়া হট স্পটে যেসব ঝুঁকি রয়েছে সেগুলো মোকাবেলা করা হবে। তখন আর ঝুঁকি থাকবে না। তিনি জানান, জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান তাঁর কন্যা ও আজকের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে বলেছিলেন, সুযোগ পেলে নেদারল্যান্ড ঘুরে এসো। পরবর্তীতে তিনি অনেক বার নেদারল্যান্ড ঘুরেছেন। তারই নির্দেশনা ও পরিকল্পনায় এই দীর্ঘ পরিকল্পনাটি তৈরি করা হয়েছে। পরিকল্পনায় নদীর ক্যাপিটাল ড্রেজিং এবং পরবর্তীতে মেইটেন্যান্স ড্রেজিং করা হবে। ফলে নতুন ভূমি পাওয়া যাবে। নদী পথের ব্যবহার বাড়ানো হবে। সেই সঙ্গে নদী ভাঙ্গনের ক্ষয়ক্ষতি কমিয়ে আনা সম্ভব হবে। ব্রিফিংয়ে জানানো হয়, ডেল্টা প্ল্যানের আওতায় ২০১৮-২০৩০ সাল পর্যন্ত মোট ৮০টি প্রকল্প বাস্তবায়িত হবে। এসব প্রকল্প বাস্তবায়নে ব্যয় হবে প্রায় ৩ লাখ কোটি টাকা। এই অর্থ সরকারী, বেসরকারি, উন্নয়ন সহযোগী এবং জলবায়ু তহবিল থেকে যোগান দেয়া হবে। তবে এই পরিকল্পনা বাস্তবায়নের মোট খরচের ৮০ শতাংশের যোগান আসবে সরকারের নিজস্ব অর্থায়ন থেকে। বাস্তবায়ন ব্যয় মেটাতে গঠন করা হবে একটি ডেল্টা তহবিল। এর পাশাপাশি ডেল্টা প্ল্যান বাস্তবায়নে গঠন করা হবে ডেল্টা নলেজ ব্যাংক। দেশের পানি সম্পদ নিয়ে একশ’ বছর মেয়াদী পরিকল্পনার খসড়া তৈরিতে সহায়তা করেছে নেদারল্যান্ড। পরিকল্পনা তৈরির জন্য ৪৭ কোটি ৪৭ লাখ টাকা অনুদান দিয়েছে দেশটি। ২০১৪ সালে প্রকল্পটি সাজানোর কাজ শুরু হয়। প্রায় সাড়ে তিন বছরে পরিকল্পনাটি অনুমোদন পেল আজ। পরিকল্পনায় পানি সম্পদ, ভূমি, কৃষি, জনস্বাস্থ্য, পরিবেশ, পানি ও খাদ্য নিরাপত্তা, অর্থনৈতিক প্রবৃদ্ধি এবং ভূ-প্রতিবেশ খাতকে বিশেষ গুরুত্ব দেয়া হয়েছে। বাংলাদেশের ব-দ্বীপ ভূমিতে প্রাকৃতিক সম্পদ খাতের ভবিষ্যৎ উন্নয়ন সম্পর্কে একটি দীর্ঘ মেয়াদী দৃষ্টিভঙ্গী তৈরি করার প্রচেস্টা রয়েছে পরিকল্পনায়। সমন্বিত নীতি উন্নয়ন, সিদ্ধান্ত গ্রহণ প্রক্রিয়া ও বাস্তবায়নের সম্ভাব্য বাঁধা চিহ্নিত করা হয়েছে। ডেল্টা তহবিল গঠনের প্রস্তাবে বলা হয়েছে, বদ্বীপ পরিকল্পনা-২১০০ বাস্তবায়নের জন্য ২০৩০ সাল নাগাদ প্রয়োজন হবে ২ লাখ ৯৭ হাজার ৮২৭ কোটি টাকা। এজন্য জিডিপির ২ দশমিক ৫ শতাংশ সমপরিমান অর্থায়ন সম্বলিত ডেল্টা তহবিল গঠনের প্রয়োজনীয়তা রয়েছে। এর মধ্যে ২ শতাংশ নতুন বিনিয়োগ এবং শুন্য দশমিক ৫ শতাংশ পরিচালন ও রক্ষণাবেক্ষণ খাতে ব্যয় করা হবে। জিডিপির ২ দশমিক ৫ শতাংশের মধ্যে শতকরা ৮০ ভাগ সরকারি তহবিল হতে এবং শতকরা ২০ ভাগ বেসরকারি খাত থেকে আসবে। পরিকল্পনা সম্পর্কে শামসুল আলম তার উপস্থাপনায় জানান, বদ্বীপ পরিকল্পনায় ২০১৮ সাল থেকে ২০৩০ সালের মধ্যে বাস্তবায়নের জন্য প্রকল্প এবং সম্ভাব্য বিনিয়োগের বিষয়ে বিস্তারিত তুলে ধরা হয়েছে। যেমন-উপকূলীয় অঞ্চলে ২৩টি প্রকল্পের জন্য বিনিয়োগ করা হবে ৮৮ হাজার ৪৩৬ কোটি টাকা। বরেন্দ্র এবং খরা প্রবণ অঞ্চলের জন্য ৯টি প্রকল্পের আওতায় বিনিয়োগে হবে ১৬ হাজার ৩১৪ কোটি টাকা। হাওর এবং আকস্মিক বন্যাপ্রবণ অঞ্চলের জন্য ৬টি প্রকল্পে বিনিয়োগ করা হবে ২ হাজার ৭৯৮ কোটি টাকা। পার্বত্য চট্টগ্রাম অঞ্চলের জন্য ৮ প্রকল্পের অনুকূলে ৫ হাজার ৯৮৬ কোটি টাকা। নদী এবং মোহনা অঞ্চলে ৭টি প্রকল্পের অনুকুলে ৪৮ হাজার ২৬১ কোটি টাকা এবং নগরাঞ্চলের জন্য ১২টি প্রকল্পের অনুকূলে ৬৭ হাজার ১৫২ কোটি টাকা বিনিয়োগ প্রাক্কলন করা হয়েছে।

জরুরি সংবাদ সম্মেলনে মির্জা ফখরুল ইসলাম

সংবিধান লঙ্ঘন করে কারাগারে আদালত স্থাপন করছে সরকার

ঢাকা অফিস ॥ বিএনপির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর অভিযোগ করেছেন, জিয়া চ্যারিটেবল ট্রাস্ট মামলায় সংবিধান লঙ্ঘন করে সরকার কারাগারে আদালত স্থাপন করছে। গতকাল মঙ্গলবার সন্ধ্যায় গুলশানে বিএনপি চেয়ারপারসনের রাজনৈতিক কার্যালয়ে আয়োজিত জরুরি সংবাদ সম্মেলনে মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর এ অভিযোগ করেন। জিয়া চ্যারিটেবল ট্রাস্ট দুর্নীতি মামলার বিচার এখন অনুষ্ঠিত হবে পুরান ঢাকার নাজিমুদ্দিন রোডের পুরোনো কেন্দ্রীয় করাগারে। আদালত বসানোর এ সিদ্ধান্ত গতকালই হয়। আইন মন্ত্রণালয় এ বিষয়ে গতকাল এক প্রজ্ঞাপনও জারি করেছে। মামলার আসামি বিএনপির চেয়ারপারসন খালেদা জিয়া অপর মামলায় সাজাপ্রাপ্ত হয়ে এই কারাগারে বন্দী আছেন। তিনি এ মামলায় নির্ধারিত তারিখে হাজিরা না দেওয়ায় এ সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে। তবে খালেদা জিয়ার আইনজীবীরা বলছেন, এটি হলে তা হবে আইনের পরিপন্থী।

সংবাদ সম্মেলনে মির্জা ফখরুল বলেন, খালেদা জিয়ার মামলা এতদিন একটি বিশেষ আদালত তৈরি করে ঢাকা আলীয়া মাদ্রাসা প্রাঙ্গণে চলছিল। এখন সরকার প্রজ্ঞাপন জারি করে কেন্দ্রীয় কারাগারের ভেতর নিচ্ছে। এটি একটি ক্যামেরা ট্রায়াল। এ ধরনের মামলায় ক্যামেরা ট্রায়ালের সুযোগ নেই। এ পদক্ষেপ সম্পূর্ণ সংবিধানবিরোধী। মির্জা ফখরুল বলেন, ‘একদলীয় শাসনব্যবস্থা প্রতিষ্ঠা করতেই সরকার এটি করছে। অত্যন্ত হীন উদ্দেশ্যে এসব কার্যক্রম করছে ক্ষমতাসীনেরা। এ ধরনের কার্যক্রম আসন্ন নির্বাচনকে প্রভাবিত করবে। বিএনপি এটিকে খুবই গুরুত্বের সঙ্গে নিচ্ছে, এটিকে ছোট করে দেখার সুযোগ নেই। এরর পরিপ্রেক্ষিতে পরবর্তী কর্মসূচি সম্পর্কে জানানো হবে।’ এক প্রশ্নের জবাবে মির্জা ফখরুল বলেন, সবচেয়ে বড় কথা খালেদা জিয়া একজন প্রবীণ রাজনীতিক। তাঁর অধিকার হরণ করা হচ্ছে। সংবিধান লঙ্ঘন করা হচ্ছে। এ সময় বিএনপি স্থায়ী কমিটির সদস্য মওদুদ আহমদ বলেন, সংবিধান যতবার ও যতগুলো সংশোধন হয়েছে, কোনোবারই ৩৫ ধারা সংশোধন করা হয়নি। আজ একটি প্রজ্ঞাপন জারির মাধ্যমে সেটি পরিবর্তন করেছে সরকার। বিএনপির স্থায়ী সদস্য খন্দকার মোশাররফ হোসেন, জমির উদ্দিন সরকার প্রমুখ সংবাদ সম্মেলনে উপস্থিত ছিলেন।

জিয়া দাতব্য ট্রাস্ট দুর্নীতির মামলা

খালেদা জিয়ার বিচারে কারাগারেই বসবে আদালত

ঢাকা অফিস ॥ জিয়া দাতব্য ট্রাস্ট দুর্নীতির মামলায় খালেদা জিয়ার বিচারে কারাগারেই বসবে আদালত। বিএনপি চেয়ারপারসন মামলাটিতে শুনানির কয়েকটি ধার্য দিনে হাজির না হওয়ার প্রেক্ষাপটে সরকারের এই সিদ্ধান্ত এল। গতকাল মঙ্গলবার বিকালে আইন মন্ত্রণালয়ের এক প্রজ্ঞাপনে বলা হয়, ‘নিরাপত্তার কারণে’ এই পদক্ষেপ নেওয়া হয়েছে। কারাগারে আদালত বসাতে সরকারের এই সিদ্ধান্তে তীব্র আপত্তি জানিয়েছেন বিএনপি চেয়ারপারসনের আইনজীবীরা। জিয়া এতিমখানা দুর্নীতির মামলায় ৫ বছরের সাজার রায়ের পর পুরান ঢাকার নাজিমউদ্দিন সড়কের পরিত্যক্ত কারাগারে একমাত্র বন্দি হিসেবে রয়েছেন খালেদা। এখন সেখানেই বসবে আদালত, করবে দুদকের করা মামলাটির বিচার। মঙ্গলবার দুপুরে দুদকের আইনজীবী মোশাররফ হোসেন কাজল সাংবাদিকদের জানিয়েছিলেন, জিয়া দাতব্য ট্রাস্ট দুর্নীতির মামলাটির বিচার কারাগারে করার উদ্যোগ নেওয়া হচ্ছে। এরপর যোগাযোগ করা হলে আইনমন্ত্রী আনিসুল হক বলেন, “এ সংক্রান্ত একটি গেজেট আজই প্রকাশ হতে পারে।” তার ঘণ্টাখানেকের মধ্যে আইন মন্ত্রণালয় থেকে প্রজ্ঞাপনটি আসে। এতদিন মামলাটির শুনানি চলছিল কারাগারের কয়েকশ গজের মধ্যে পুরান ঢাকার বকশীবাজারে আলিয়া মাদ্রাসা সংলগ্ন কারা অধিদপ্তরের মাঠে। ঢাকার ৫ নম্বর বিশেষ জজ আদালতের বিচারক মো. আখতারুজ্জামান ওই মাঠে স্থাপিত বিশেষ এজলাসে মামলাটির শুনানি নিচ্ছিলেন। দুর্নীতির এই মামলায় বুধবার আদালতে শুনানির দিন ধার্য রয়েছে; তার আগের দিন এজলাস স্থানান্তরের প্রজ্ঞাপন এল। এতে বলা হয়, “বকশীবাজার এলাকার সরকারি আলিয়া মাদ্রাসার ও সাবেক ঢাকা কেন্দ্রীয় কারাগার সংলগ্ন মাঠে নির্মিত এলাকাটি জনাকীর্ণ থাকে। সেজন্য নিরাপত্তাজনিত কারণে বিশেষ জজ আদালত-৫ নাজিমউদ্দিন রোডের পুরাতন ঢাকা কেন্দ্রীয় কারাগার এর প্রশাসনিক ভবনের ৭ নম্বর কক্ষকে আদালত হিসেবে ঘোষণা করা হল।

“বিশেষ জজ আদালতে বিচারাধীন বিশেষ মামলা নং ১৮/২০১৭ এর বিচার কার্যক্রম পুরাতন ঢাকা কেন্দ্রীয় কারাগারের প্রশাসনিক ভবনের কক্ষ নং ৭ এর অস্থায়ী আদালতে অনুষ্ঠিত হইবে।” চলতি বছরের ফেব্র“য়ারিতে জিয়া এতিমখানা ট্রাস্ট দুর্নীতি মামলার রায়ের পর ৭৩ বছর বয়সী খালেদা জিয়াকে ওই কারাগারের দোতলার একটি কক্ষে রাখা হয়েছে। এই ‘স্পেশাল জেলে’ সাবেক এই প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে তার ব্যক্তিগত এক গৃহকর্মীও রয়েছেন। এখন যেখানে বিচার হবে, তা কারা ভবনের নিচতলার একটি কক্ষ। বন্দি খালেদার শুনানির কয়েকটি ধার্য দিনে হাজির না হওয়ার কারণ হিসেবে তার অসুস্থতার কথা আদালতে জানানো হয়েছিল। অন্যদিকে শুনানিতে মামলাকারী দুদকের আইনজীবী মোশাররফ হোসেন কাজল তা নিয়ে সন্দেহ প্রকাশ করে বলে আসছিলেন, খালেদা জিয়া ‘অসুস্থতার ভান করছেন’। জিয়া চ্যারিটেবল ট্রাস্ট দুর্নীতির মামলায় খালেদা জিয়া জামিন পেয়েছেন। সর্বশেষ দিনের শুনানিতে তার জামিনের মেয়াদ ৫ সেপ্টেম্বর পর্যন্ত বাড়িয়ে দিয়েছিলেন বিচারক আখতারুজ্জামান। জিয়া দাতব্য ট্রাস্টের নামে অবৈধভাবে ৩ কোটি ১৫ লাখ ৪৩ হাজার টাকা লেনদেনের অভিযোগে খালেদা জিয়াসহ চারজনের বিরুদ্ধে ২০১০ সালের ৮ অগাস্ট তেজগাঁও থানায় মামলাটি করেছিল দুদক।

২০১২ সালের ১৬ জানুয়ারি মামলার তদন্ত কর্মকর্তা দুদকের উপপরিচালক হারুন-অর-রশীদ আদালতে অভিযোগপত্র দেন। ২০১৪ সালের ১৯ মার্চ অভিযোগ গঠনের পর শুরু হয় বিচার। মামলার অন্য আসামিরা হলেন খালেদার সাবেক রাজনৈতিক সচিব হারিছ চৌধুরী এবং হারিছের তৎকালীন একান্ত সচিব (বর্তমানে বিআইডব্লিউটিএ এর নৌ নিরাপত্তা ও ট্রাফিক বিভাগের ভারপ্রাপ্ত পরিচালক) জিয়াউল ইসলাম মুন্না, ঢাকা সিটি করপোরেশনের সাবেক মেয়র সাদেক হোসেন খোকার একান্ত সচিব মনিরুল ইসলাম খান। দীর্ঘদিনেও বিচার শেষ না হওয়ার জন্য আওয়ামী লীগ নেতারা খালেদার আইনজীবীদের সময়ক্ষেপণকে দায়ী করে আসছেন। অন্যদিকে বিএনপি নেতাদের দাবি, আওয়ামী লীগ সরকারের ইন্ধনে রাজনৈতিক উদ্দেশ্য হাসিলে এই মামলাটি করা হয়েছে।

আলমডাঙ্গায় জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান জাতীয় গোল্ড কাপ ফুটবল টুর্ণামেন্টের উদ্বোধন

আলমডাঙ্গা অফিস ॥ আলমডাঙ্গায় জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান অনুর্ধ্ব-১৭, জাতীয় গোল্ড কাপ ফুটবল টুর্ণামেন্ট ২০১৮’ এর শুভ উদ্বোধন করা হয়েছে। গতকাল মঙ্গলবার দুপুর ২টার দিকে আলমডাঙ্গা ফুটবল মাঠে ১৬ দলের এই খেলায় প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত থেকে আনুষ্ঠানিকভাবে উদ্বোধন করেন জাতীয় সংসদের হুইপ বীর মুক্তিযোদ্ধা সোলায়মান হক জোয়ার্দ্দার ছেলুন এমপি। এ সময় তিনি বলেন  লেখাপড়ার পাশাপাশি শরীর গঠনে খেলাধূলা অত্যাবশ্যকীয়। সুস্থ্য শরীর, সুস্থ্য মন বর্তমান সরকার যুব ও ক্রীড়া মন্ত্রনালয়ের আয়োজনে সারা দেশে জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান অনুর্ধ্ব-১৭ গোল্ডকাপ ফুটবল টূর্ণামেন্ট শুরু করেছেন। তোমরা যারা এই খেলায় ভালো ফলাফল করবে, তোমাদের ভিতর থেকে জাতীয় পর্যায়ে বিকেএসপির মাধ্যমে প্রশিক্ষণ দেয়া হবে। অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন উপজেলা নির্বাহী অফিসার রাহাত মান্নান। বিশেষ অতিথি ছিলেন উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান কাজী খালেদুর রহমান অরুন, উপজেলা সহকারী কমিশনার (ভূমি) সিমা শারমীন, আলমডাঙ্গা থানা অফিসার ইনচার্জ আবু জিহাদ ফকরুল আলম খান, আলমডাঙ্গা সরকারী পাইলট স্কুলের প্রধান শিক্ষক রবিউল ইসলাম খান। বীর মুক্তিযোদ্ধা আলহাজ্ব শেখ নুর মোহাম্মদ জকুর পরিচালনায় অন্যান্যদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন সমাজসেবা অফিসার আফাজ উদ্দিন, মৎস্য কর্মকর্তা তৌহিদুর রহমান, যুব উন্নয়ন কর্মকর্তা আনিছুর রহমান, শিক্ষা অফিসার মৃণাল কান্তি সরকার, ইউপি চেয়ারম্যান জিল্লুর রহমান, এ্যাড. আব্দুল মালেক, মোস্তাফিজুর রহমান রুন্নু, মাসুদ পারভেজ, আবুল কালাম আজাদ, শিক্ষক গৌতম কুমার পাল, মোহাম্মদ আলী সিদ্দিক, পৌর কাউন্সিলার আলী আজগার সাচ্চু, সরকারী কলেজ ছাত্রলীগের সভাপতি আশরাফুল হক। সার্বিক দায়িত্বে ছিলেন উপজেলা ক্রীড়া সংস্থার সাধারণ সম্পাদক খন্দ. জিহাদী জুলফিকার টুটুল। উদ্বোধন শেষে খেলার প্রতিযোগিতায় খাসকররা ইউনিয়ন ২-০ গোলে আইলহাস ইউনিয়নকে পরাজিত করে। অপর খেলায় চিৎলা ইউনিয়ন বাড়াদি ইউনিয়নকে ৩-২ গোলে পরাজিত করে।

আবারো বলিউড আমেজে আনুশকা

বিনোদন বাজার ॥ আনুশকা শর্মা ও বিরাট কোহলির বিয়ের পর থেকে খবরের শিরোনাম ‘আনুশকা’ মানে সেখানে কোহলিকে জড়িয়ে খবর থাকবে। এই গ-ি থেকে বের হতেই পারছিল না বলিউড এই সুন্দরী। মাঝে ভারতীয় ক্রিকেট দলের সাথে ছবি তোলা নিয়েও এক বিতর্কের সৃষ্টি হয়। এতকিছু পেরিয়ে আনুশকা যেন আবারো বলিউড বাতাসে ফিরেছেন। বলা যায়, আবারো বলিউড আমেজে আনুশকা। চলতি মাসের ২৮ তারিখ মুক্তি পেতে যাচ্ছে তার অভিনীত ‘সুই ধাগা-মেইড ইন ইন্ডিয়া’। যেখানে তার সাথে জুটি হয়ে দেখা যাবে বরুণ ধাওয়ানকে। অনেকদিন পর বরুণও নতুন ছবি নিয়ে শিরোনাম হয়েছেন। সম্প্রতি ‘সুই ধাগা’ সিনেমার নতুন পোস্টার প্রকাশ করেছেন আনুশকা। ছবিটি নিয়ে বেশ আশাবাদী তিনি।ইনস্টাগ্রামে পোস্টারটি পোস্ট করে আনুশকা লেখেন, ‘সুই ধাগা-মেইড ইন ইন্ডিয়া মুক্তির বাকি রয়েছে চার সপ্তাহ। এখন পর্যন্ত সব ভালোই চলছে। মুক্তি পাবে ২৮ সেপ্টেম্বর।’১২ আগস্ট ছবিটির অফিসিয়াল ট্রেইলার মুক্তি পায়। এখন পর্যন্ত ট্রেইলারটি ২ কোটি ৭০ লাখ দর্শক দেখেছেন। যশরাজ ফিল্মসের প্রযোজনায় ছবিটি পরিচালনা করেছেন শরৎ কাটারিয়া।ছবির গল্প গড়ে উঠেছে ভারতের বুননশিল্পী ও পোশাক কর্মীদের নিয়ে। সেখানে আনুশকাকে একেবারেই সাদামাটা বুননশিল্পীর চরিত্রে দেখা যাবে, নাম মমতা। আনুশকার সঙ্গে দেখা যাবে বরুণ ধাওয়ানকে, নাম মউজি। তিনি দর্জির চরিত্রে অভিনয় করেছেন। আত্মনির্ভরশীলতা আর গৌরব নিয়েই রচিত হয়েছে ছবিটির কাহিনী।

উত্তর কোরিয়ার চলচ্চিত্র উসবে যাচ্ছে ‘আলতা বানু’

বিনোদন বাজার ॥ আগামি ১৯ থেকে ২৭ সেপ্টেম্বর পর্যন্ত উত্তর কোরিয়ায় অনুষ্ঠিত হতে যাচ্ছে এশিয়া মহাদেশের অন্যতম বৃহৎ চলচ্চিত্র উৎসব ‘পিয়ং ইয়ং ফিল্ম ফেস্টিভ্যাল’। এই উৎসবে আমন্ত্রণ পেয়েছে অরুণ চৌধুরীর পরিচালিত ‘আলতা বানু’। চলতি বছর এপ্রিলে সিনেমাটি দেশের প্রেক্ষাগৃহে মুক্তি পায়। এর প্রযোজনা প্রতিষ্ঠান ইমপ্রেস টেলিফিল্ম জানায়, ২৩ সেপ্টেম্বর উৎসবে চলচ্চিত্রটি প্রদর্শিত হবে। এর আগে ‘আলতা বানু’ কানাডার টরেন্টো চলচ্চিত্র উৎসব ও কলকাতার নন্দনে আয়োজিত ‘বাংলাদেশ ফিল্ম ফেস্টিভ্যাল’-এ প্রদর্শিত হয়েছিলো। চলচ্চিত্রটিতে আলতা চরিত্রে অভিনয় করছেন অভিনেত্রী জাকিয়া বারী মম ও বানু চরিত্রে অভিনয় করেছেন ফারজানা রিক্তা। এতে আরও রয়েছেন রাইসুল ইসলাম আসাদ, দিলারা জামান, মামুনুর রশীদ, আনিসুর রহমান মিলন প্রমুখ।

পর্বতে ‘মধুচন্দ্রিমায়’ প্রিয়াঙ্কা-নিক

বিনোদন বাজার ॥ নিজের থেকে ১১ বছরের ছোট এক গায়কের সঙ্গে সম্প্রতি বাগদান সম্পন্ন করেছেন বলিউড নায়িকা প্রিয়াঙ্কা চোপড়া। এ নিয়ে বেশ হইচই করেছিলো প্রিয়াঙ্কার সমালোচকেরা। তবে বাগদানের পর বর্তমানে তারা যে বেশ মধুর ও আবেগঘন মুহূর্ত পার করছেন, তাতে বোঝা যায়, সমালোচনা নিযে কোন মাথাব্যথা নেই প্রিয়াঙ্কার।সম্প্রতি নিক জোনাস তার ইন্সটাগ্রামে একটি ছবি পোষ্ট করে বলেন, একজন মানুষ ও পর্বত। ছবির ক্রেডিট দেন প্রিয়াঙ্কাকে।নিকের অন্য একটি পোস্টে প্রিয়াংকার ছবি দেখা যায়। সেখানে হাসোজ্জ্বল প্রিয়াঙ্কাকে দেখে বেশ সুখী মনে হচ্ছে।বর্তমানে তারা ক্যালিফোর্নিয়ার পার্বত্য অঞ্চলে অবসর কাটাচ্ছেন।

বুশরার ‘খেলাধূলার বাংলাদেশ’

বিনোদন বাজার ॥ বাংলাদেশ সিরিজ নিয়ে আরও একটি নতুন গান রেকর্ড করছেন কণ্ঠশিল্পী বুশরা শাহরিয়ার। গানের শিরোনাম- ‘খেলাধূলার বাংলাদেশ’। এর কথা লেখার পাশাপাশি সুরও করেছেন বুশরা নিজে। সঙ্গীতায়োজন করেছেন ইমন চৌধুরী। এটি বুশরার বাংলাদেশ সিরিজের চতুর্থ গান। মিউজিক ভিডিও নির্মাণ করেছেন তানিম রহমান অংশু। ভিডিওতে দাবা, হাডুডু, সাতচারা, ক্রিকেট, ফুটবল, গল্কম্ফ, কানাকাছিসহ দেশের বিভিন্ন খেলা গল্পের আঙ্গিকে তুলে ধরা হয়েছে। দেশের স্বনামধন্য ক্রিকেটার মাশরাফি, মুস্তাফিজ, ফুটবলার আসলাম, দাবার গ্র্যান্ডমাস্টার জিয়াউর রহমানসহ বেশ কয়েকজন খেলোয়াড় এই ভিডিও পারফর্ম করেছেন। এ প্রসঙ্গে বুশরা শাহরিয়ার বলেন, বাংলাদেশ সিরিজের গানগুলোয় দেশের প্রাকৃতিক সৌন্দর্য থেকে শুরু করে ইতিহাস ও ঐতিহ্যের নানা বিষয় তুলে ধরা হচ্ছে। সিরিজের চতুর্থ তাই দেশীয় খেলায় কিছু দৃশ্যপট তুলে ধরা হয়েছে। আশা করছি, গানটি অনেকের ভালো লাগবে।এশিয়া কাপকে সামনে রেখে আগামী মাসের প্রথম সপ্তাহে বুশরার নিজস্ব ইউটিউব চ্যানেলে গানটি প্রকাশ করা হবে। এ ছাড়াও গানটি জিপি মিউজিক অ্যাপ্লিকেশনে শোনা যাবে বলেও বুশরা জানান।

কিসে ভয় পান বলিউড তারকারা?

বিনোদন বাজার ॥ রুপালি পর্দায় তাদের চাহনিতেই কেঁপে ওঠেন শত্রুরা। তাদের বুদ্ধি ও শক্তিমত্তায় পরাজয় বরণ করেন বাঘা বাঘা মাফিয়া। ভক্তদের কাছে তাদের একেকজন যেন বাহুবলিস্বরূপ।কিন্তু বাস্তবে তাদের রয়েছে হাস্যকর আর অদ্ভুত সব ভয়। তাদের কেউ কেউ ভয় পান আরশোলাকে, কেউ ঘুমান বাতি জ্বালিয়ে।অদ্ভুত সব ফোবিয়ায় ভোগেন এসব বলিউড তারকা।

শাহরুখ খান: সিনেমায় কাউকেই পরোয়া করেন না বলিউড ডন শাহরুখ খান। শত্রুদের দেয়া যে কোনো চ্যালেঞ্জ মোকাবেলায় জয়ী হন তিনি। কিছুতেই ভয় নেই তার।কিন্তু বাস্তবে কিং খান সবচেয়ে বেশি নাকি ভয় পান ঘোড়াকে। এ কারণেই ছবিতে তারা ঘোড়া ছোটানোর দৃশ্য খুব একটা দেখা যায়নি।

রণবীর কাপুর: হালের ক্রেজ বলিউডের হ্যান্ডসাম ডুড রণবীর কাপুর। অভিনয়ে ইতিমধ্যে নিজের বহুমুখী প্রতিভা দেখিয়েছেন তিনি। এক সাক্ষাৎকারে রণবীর জানান, তিনি নাকি সবচেয়ে বেশি ভয় পান আরশোলা ও মাকড়শাকে। শুটিং সেটে এসব কীটপতঙ্গ দেখলেই অভিনয় ছেড়ে লাফ দিয়ে কোথাও পালিয়ে যান তিনি। অজয় দেবগন: তার থাবায় শোনা যায় বাঘের গর্জন। যেখানে পা ফেলেন অপরাধীরা সব ভীতসন্ত্রস্ত হয়ে পালায়। কিন্তু এ বলিউড সিংঘামখ্যাত অজয় দেবগনের রয়েছে উচ্চভীতি। ভার্টিগোর সমস্যাও রয়েছে তার। এ ছাড়া তার রয়েছে আরেকটি হাস্যকর ফোবিয়া। হাত দিয়ে খাবার খেতে সবচেয়ে বেশি ভয় পান এ অ্যাকশন-জ্যাকশন অভিনেতা।

অর্জুন কাপুর: অদ্ভুত এক ফোবিয়ায় ভুগছেন অর্জুন কাপুর। সবচেয়ে বেশি নাকি ভয় পান তিনি সিলিংফ্যানকে। আর এ কারণেই তার বাড়িতে নেই কোনো সিলিংফ্যান।

ক্যাটরিনা কাইফ: হলিউডের অ্যাঞ্জেলিনা জলির চেয়ে কম যান না বলিউড কুইন ক্যাটরিনা কাইফ। এক থা টাইগার ও এর সিকোয়েলে সালমান খানের সঙ্গে পাল্লা দিয়ে সমানে মারপিট ও আগ্নেয়াস্ত্র নিয়ে খেলেছেন তিনি। কিন্তু এ অভিনেত্রীর রয়েছে আজব একটি ফোবিয়া। তা হল টমেটো নিয়ে রীতিমতো আতঙ্কে ভোগেন তিনি।‘জিন্দগি না মিলেগি দোবারা’ ছবির শুটিংয়ের সময় নাকি লা তোমাতিনা ফেস্টিভালে টমেটো নিয়ে শুটের সময়ও বেশ ভয়ে থাকতেন তিনি।বিদ্যা বালান: বিড়ালকে বেশ ভয় পান বিদ্যা। চারপাশে কোথাও বিড়ালের আওয়াজ পেলেই আতঙ্ক শুরু হয় এই দাপুটে অভিনেত্রীর।

অভিষেক বচ্চন: ফল খেতে ভয় পান বিগবিপুত্র অভিষেক বচ্চন। ছোটবেলায় ফল একেবারেই খেতে চাইতেন না তিনি। তাই সিনেমাতেও তাকে ফল খেতে তেমন একটা দেখা যায় না।

আনুশকা শর্মা: প্রথম ডেবিউ ছবি ‘রাবনে বানা দি জোড়ি’তে বাইকচালক শাহরুখ খানকে পছন্দ করে তার পেছনে চড়ে উড়ে বেরিয়েছিলেন আনুশকা শর্মা। অথচ বাইক চড়তে নাকি সবচেয়ে বেশি ভয় পান এ অভিনেত্রী।

সানি লিওন: অন্ধকারকে ভয় পান সানি। ঘুমানোর সময়ও আলো জ্বালিয়ে রাখেন তিনি। কোনো স্ক্রিপ্টে কাজ করার আগে নাকি তিনি জেনে নেন ছবিতে অন্ধকারের দৃশ্য আছে কিনা।

দীপিকা পাড়ুকোন: সাপ নিয়ে রীতিমতো আতঙ্কে ভোগেন বলিউড পদ্মাবত। সাপকে এতই ভয় পান তিনি যে, কোনো দড়ি দেখলেও তিনি সাপ ভেবে আঁৎকে ওঠেন।

অর্জুন রামপাল হাসপাতালে

বিনোদন বাজার ॥ হাসপাতালে ভর্তি হয়েছে অর্জুন রামপাল। তাঁর লিগামেন্ট ছিঁড়ে গিয়েছে। এমআরআই-ও করতে হচ্ছে অভিনেতাকে।শনিবার ইনস্টাগ্রামে এমআরআই-এর একটি ভিডিও পোস্ট করেছেন বলিউড অভিনেতা অর্জুন রামপাল।তবে অর্জুন রামপালের চোট কতটা গুরুতর ঠিক জানা যায়নি। কিছুদিন আগে ‘পল্টন’ ছবি মুক্তির জন্য আশীর্বাদ নিতে অমৃতসরের স্বর্ণ মন্দিরে গিয়েছিলে অর্জুন। জে পি দত্ত পরিচালিত ‘পল্টন’ ছবিটি মুক্তি পাবে আগামী ৭ সেপ্টেম্বর। ১৯৬৭ সালে সিকিম সীমান্তে নাথুলা ও চো লা সংঘর্ষকে ভিত্তি করেই তৈরি হয়েছেন ‘পল্টন’ ছবির গল্প। অর্জুন ছাড়াও এই ছবিতে দেখা যাবে ইশা গুপ্তা ও জ্যাকি শ্রফের মত অভিনেতা, অভিনেত্রীকে।

রোনালদোর বিদায়ে শক্তি কমেছে রিয়ালের – মেসি

 

ক্রীড়া প্রতিবেদক ॥ ক্রিস্তিয়ানো রোনালদোর অনুপস্থিতিতে রিয়াল মাদ্রিদের শক্তি কমেছে বলে মনে করছেন বার্সেলোনার অধিনায়ক লিওনেল মেসি। একই সঙ্গে পর্তুগিজ ফরোয়ার্ডকে পেয়ে ইউভেন্তুস চ্যাম্পিয়ন্স লিগে ফেভারিটদের তালিকায় উপরে উঠে এসেছে বলেও মত আর্জেন্টাইন তারকার। চলতি বছরের গ্রীষ্মকালীন দল-বদলে ১১ কোটি ২০ লাখ ইউরো ট্রান্সফার ফিতে ইউভেন্তুসে যোগ দেন রোনালদো। ২০০৯ সালে ম্যানচেস্টার ইউনাইটেড থেকে সান্তিয়াগো বের্নাবেউয়ে আসার পর নয় মৌসুমে চারটি চ্যাম্পিয়ন্স লিগ ও দুটি লা লিগাসহ অসংখ্য শিরোপা জেতেন পাঁচবারের বর্ষসেরা এই ফুটবলার। চলতি মৌসুমে লা লিগা শিরোপা পুনরুদ্ধারের অভিযান শুরু করে প্রথম তিন ম্যাচে জয়ের দেখা পেয়েছে হুলেন লোপেতেগির দল। অবশ্য মেসির মতে, রোনালদোকে হারানোয় শক্তি কমেছে চিরপ্রতিদ্বন্দ্বীদের। “রিয়াল মাদ্রিদ বিশ্বের অন্যতম সেরা ক্লাব এবং তাদের অসাধারণ একটা দল আছে।” “কিন্তু এটা স্পষ্ট যে, রোনালদোর অনুপস্থিতি তাদেরকে দুর্বল করেছে এবং ইউভেন্তুসকে চ্যাম্পিয়ন্স লিগ জয়ে পরিষ্কার ফেভারিটদের তালিকায় তুলে এনেছে।” রোনালদো রিয়াল ছাড়ায় নিজের বিস্ময় গোপন করেননি আর্জেন্টাইন ফরোয়ার্ড। “তার চলে যাওয়া আমাকে বিস্মিত করেছে। তার রিয়াল মাদ্রিদ ছাড়া এবং ইউভেন্তুসে যোগ দেওয়া আমার চিন্তার বাইরে ছিল।” “অনেক দলই তাকে চাইছিল। এটা আমাকে অবাক করেছে। কিন্তু সে খুব ভালো একটা দলে যোগ দিয়েছে।”

নেপালকে হারিয়ে সাফ শুরু পাকিস্তানের

ক্রীড়া প্রতিবেদক ॥ ম্যাচের শুরুতে এগিয়ে গিয়েছিল নিষেধাজ্ঞা কাটিয়ে ফেরা পাকিস্তান। শেষ দিকে সমতায় ফেরে নেপাল। কিন্তু যোগ করা সময়ের গোলে সাফ ফুটবল চ্যাম্পিয়নশিপে শুভসূচনা করেছে তিন বছর পর আন্তর্জাতিক ফুটবলে ফেরা দলটি। বঙ্গবন্ধু জাতীয় স্টেডিয়ামে মঙ্গলবার ‘এ’ গ্র“পে নিজেদের প্রথম ম্যাচে ২-১ গোলে জয় পায় পাকিস্তান। সাফ চ্যাম্পিয়নশিপে নেপালের বিপক্ষে এ নিয়ে দ্বিতীয় জয় পেল পাকিস্তান। সাফ চ্যাম্পিয়নশিপে দুই দলের আগের ছয় দেখায় নেপালের জয় ২টি, ৩ ড্র; অন্যটিতে হেরেছিল তারা। ম্যাচের শুরু থেকে বলের নিয়ন্ত্রণে এগিয়ে থাকলেও তেমন কোনো সুযোগ তৈরি করতে পারছিল না নেপাল। ২৩তম মিনিটে প্রথম বলার মতো সুযোগ পায় পাকিস্তান। কিন্তু মহসিন আলির থ্রো ইনের পর ছয় গজ বক্সে বল পেয়েও তালগোল পাকিয়ে ফেলেন ফরোয়ার্ড মোহাম্মদ আলি। ৩৫তম মিনিটে সফল স্পট কিকে পাকিস্তানকে এগিয়ে নেন হাসান নাভিদ বশির। ডি-বক্সের মধ্যে মুহাম্মদ রিয়াজকে বিরাজ মহারাজন ফাউল করলে পেনাল্টির বাঁশি বাজান রেফারি। ৪০তম মিনিটে কর্নারে সুমন আরিয়ালের হেড ফিরিয়ে পাকিস্তানের ত্রাতা গোলরক্ষক ইউসুফ ইজাজ বাট। দ্বিতীয়ার্ধেও বলের নিয়ন্ত্রণে এগিয়ে থাকে নেপাল; কিন্তু দলটির ফরোয়ার্ডরা পারছিল না পাকিস্তানের রক্ষণ ভাঙতে। উল্টো ৭৫তম মিনিটে ক্রসবারের কল্যাণে বেঁচে যায় দলটি। প্রতি-আক্রমণ থেকে বল পেয়ে তিন ডিফেন্ডারকে পেছনে ফেলে একাই ছুটছিলেন সাদউল্লাহ। বদলি এই ফরোয়ার্ডের ৩৫ গজ দূর থেকে নেওয়া শট গোলরক্ষকের গ্লাভসকে ফাঁকি দিলেও ক্রসবারে লেগে ফেরে। ৮২তম মিনিটে সমতার স্বস্তি ফেরে নেপাল দলে। সুজল শ্রেষ্ঠার কর্ণারে নিরঞ্জন খাদকার হেডের পর বিমল ঘারতি মাগারের বাঁ পায়ের প্লেসিং শটে পরাস্ত হন গোলরক্ষক। পাঁচ মিনিট পর পাকিস্তানের মোহাম্মহ আলির ডি-বক্সের ভেতর থেকে নেওয়া শট সোজা গোলরক্ষকের গ্লাভসে জমে যায়। শেষ দিকে গোলরক্ষকের দৃঢ়তায় এগিয়ে যেতে পারেনি নেপাল। সুনিল বালের শট ফেরানোর পর সুজলের ফিরতি শটও ফিস্ট করে ক্রসবারের ওপর দিয়ে বিপদমুক্ত করেন বাট। যোগ করা সময়ের দারুণ গোলে জয় নিশ্চিত করে নেয় পাকিস্তান। বাঁ দিক থেকে মোহাম্মদ আদিলের বাড়ানো বল হেড করে আলিকে বাড়ান সাদউল্লাহ; গোলমুখ থেকে হেডেই লক্ষ্যভেদ করেন আলি।

এশিয়া কাপের পাকিস্তান দলে শান মাসুদ

ক্রীড়া প্রতিবেদক ॥ এশিয়া কাপের জন্য পাকিস্তান দলে ফিরেছেন শান মাসুদ। বাদ পড়েছেন অফ স্পিনিং অলরাউন্ডার মোহাম্মদ হাফিজ। জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে সবশেষ ওয়ানডে সিরিজের দলে ছিলেন ৩৭ বছর বয়সী হাফিজ। তবে সেই সিরিজে কোনো ম্যাচে খেলার সুযোগ হয়নি তার। ঘরোয়া ক্রিকেটে ভালো খেলার পুরস্কার পেয়েছেন মাসুদ। সবশেষ ১০ লিস্ট ‘এ’ ম্যাচে তিন সেঞ্চুরির সঙ্গে তার ফিফটি পাঁচটি। ফখর জামাম ও ইমাম-উল-হকের পর তৃতীয় ওপেনার হিসেবে দলে এসেছেন মাসুদ। ১৬ সদস্যের দলে ডাকা হয়েছে ছয় পেসারকে। মোহাম্মদ আমির, হাসান আলি, জুনাইদ খান, উসমান খান ও ফাহিম খানের সঙ্গী শাহিন শাহ আফ্রিদি। ১৮ বছর বয়সী আফ্রিদিকে পাকিস্তানের সবচেয়ে সম্ভাবনাময় পেসার হিসেবে দেখেন কোচ মিকি আর্থার। এখনও কোনো ওয়ানডে না খেলা আফ্রিদির মাঝে অস্ট্রেলিয়ার মিচেল স্টার্কের ছায়া দেখেন দক্ষিণ আফ্রিকার এই কোচ। জিম্বাবুয়ে সিরিজের দল থেকে বাদ পড়েছেন লেগ স্পিনার ইয়াসির শাহ। ফিটনেস টেস্টে উৎরাতে ব্যর্থ হয়ে বাদ পড়েছেন ইমাদ ওয়াসিম। ওয়ানডের পাকিস্তান দল: ফখর জামান, ইমাম-উল-হক, শান মাসুদ, বাবর আজম, শোয়েব মালিক, সরফরাজ আহমেদ (অধিনায়ক ও উইকেটরক্ষক), হারিস সোহেল, আসিফ আলি, মোহাম্মদ নওয়াজ, ফাহিম আশরাফ, শাদাব খান, মোহাম্মদ আমির, হাসান আলি, জুনাইদ খান, উসমান খান, শাহিন শাহ আফ্রিদি।

 

বলিউড অভিনেত্রীর সাথে রবি শাস্ত্রীর প্রেমের গুঞ্জন

বিনোদন বাজার ॥ বিরাট কোহলি-অনুষ্কা শর্মা, হরভজন সিং-গীতা বসরার পর এবার কী ২২ গজ এবং রুপোলি পর্দার আরও এক নতুন জুটির জন্য অপেক্ষা করতে হবে? কি অবাক লাগছে তো শুনে? ঘটনাটা খুলেই বলা যাক তাহলে।শোনা যাচ্ছে, ‘এয়ারলিফ্ট’ অভিনেত্রী ‘নিমরত’ কউরের সঙ্গে নাকি ‘ডেট’ করছেন ভারতীয় ক্রিকেট দলের কোচ রবি শাস্ত্রী। শুধু তাই নয়, গত ২ বছর ধরে নাকি নিমরতের সঙ্গে সম্পর্কে জড়িয়ে রয়েছেন রবি শাস্ত্রী। পুনে মিরর-এর খবর অনুযায়ী, গত ২ বছর ধরে নিমরতের সঙ্গে রবি শাস্ত্রীর সম্পর্ক থাকলেও, তাঁরা বিষয়টি নিয়ে প্রকাশ্যে কোনও মন্তব্য করতে চাননি। কিন্তু, এবার নিমরতের সঙ্গে রবি শাস্ত্রীর সম্পর্কের খবর প্রকাশ্যে আসায় ইতিমধ্যেই জোর গুঞ্জন শুরু হয়েছে।