৫০ বছর ধরে গণহত্যার ক্ষত বাংলাদেশে, ক্ষমা চায়নি পাকিস্তান

বাংলাদেশের মানুষের কাছে বেশ পরিচিত একটি নাম ‘অপারেশন সার্চলাইট’। ২৫ মার্চ রাতে পাক হানাদার বাহিনী ভারি অস্ত্র নিয়ে ঝাঁপিয়ে পড়ে নিরীহ-নিরস্ত্র বাংলাদেশের মানুষের উপর। পরবর্তী ৯ মাস ধরে চলে এই হত্যাযজ্ঞ, যার জন্য আজও ক্ষমা চায়নি পাকিস্তান। বাংলাদেশে সংগঠিত নৃশংসতম এই হত্যাকাণ্ডের কথা স্বীকার না করে উল্টো বাংলাদেশের সঙ্গে সুসম্পর্ক গড়ার কথা বলে দেশটি। ৫০ বছর ধরে জ্বলতে থাকা ছেলে হারা মায়ের হৃদয়ের জ্বালা না মিটিয়ে বর্বর এই গণহত্যাকে ভুলে কিভাবে তা সম্ভব! ১৯৭১-এর ২৫ মার্চ ঢাকা-সহ বর্তমান বাংলাদেশের বিভিন্ন গ্রাম ও শহরে চালানো ধ্বংসযজ্ঞকে আজও স্বীকৃতি দিলো না জাতিসংঘ। চীন ও আমেরিকার সক্রিয় বিরোধিতাই অগণিত মানুষের নৃশংস হত্যাকাণ্ডতে আন্তর্জাতিক স্বীকৃতির বড় বাধা। অথচ বাংলাদেশের তরফ থেকে বারবার দাবি তোলা হয়েছে পাক-বাহিনীর নৃশংস হত্যাকাণ্ডের বিরুদ্ধে জাতিসংঘের স্বীকৃতির জন্য। কিন্তু ৫০ বছরেও তা মেলেনি। জাতিসংঘ কোন এক অজানা প্রভাবে আজও গণহত্যা বা জেনোসাইড না মানলেও খোদ পাকিস্তানি সাংবাদিকের বিবরণেই ধরা পড়ে সেদিনের গণহত্যার বিবরণ। পশ্চিমা দুনিয়ার গণমাধ্যমে ফুটে ওঠে সেই নৃশংস গণহত্যার ছবি। ডেইলি টেলিগ্রাফে ১৯৭১ সালের ২৫ মার্চের গণহত্যা বা জেনোসাইডের প্রতিবেদন স্পষ্ট করে উপস্থাপন করেন সাইমন ড্রিং। রাত ১০-টা নাগাদ শুরু হয় পরিকল্পিত ধ্বংসযজ্ঞ। ঢাকার পিলখানা, রাজারবাগ পুলিশলাইন, নীলক্ষেত এলাকায় ব্যাপক আক্রমণ চালায় পাক-হানাদাররা। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ১০ জন শিক্ষককে নির্মমভাবে হত্যা করা হয়। জহুরুল হক হলের প্রায় ২০০ ছাত্রকে ঠাণ্ডা মাথায় গুলি করে হত্যাকরে পাকবাহিনী।  রাতভর চলে গণহত্যা। আর্চার কে ব্লাড এর বই ‘দ্য ক্রুয়েল বার্থ অফ বাংলাদেশ’ বইটিতে বলা হয়েছ, ছাত্রীনিবাস রোকেয়া হলে আগুন ধরিয়ে শ-তিনেক ছাত্রীকে সে রাতে হত্যা করা হয়।  রাজারবাগে গ্যাসোলিন ছিটিয়ে ভস্মীভূত করা হয় পুলিশ সদর দফতর। এক রাতে খুন করা হয় ১১০০ বাঙালি পুলিশকে। শুধু ঢাকাই নয়, রাতভর গণহত্যা চলে গোটা পূর্ব পাকিস্তান জুড়ে। মুক্তিযুদ্ধ চলাকালে পাকিস্তান সরকারের  শ্বেতপত্রেই স্বীকার করা হয়েছে ‘১৯৭১ সালের ১লা মার্চ থেকে ২৫শে মার্চ রাত পর্যন্ত এক লাখেরও বেশি মানুষের জীবননাশ হয়েছিল।’ ২৫ মার্চ আনুষ্ঠানিকভাবে শুরু হয় গণহত্যা। অবশ্য এর আগেও চলেছে পাক-বাহিনীর বর্বরতা । পরেও চলে। ১৯৭১-এর ১৬ ডিসেম্বর পাকিস্তানি  সেনাবাহিনীর আত্মসমর্পণের আগ পর্যন্ত পদ্মা-মেঘনার পানি রক্তবর্ণ ধারণ করে বাঙালির রক্তে। পাক-বাহিনীর স্থানীয় সহোদর আলবদর ও রাজাকারদের চক্রান্তে বাংলা মায়ের কোল খালি হতে থাকে। আত্মসমর্পণের আগ-মুহূর্তেও বন্ধ হয়নি হত্যাযজ্ঞ। ১৬ ডিসেম্বর আত্মসমর্পণের দুদিন আগে বুড়িগঙ্গার পারে শ-দুয়েক বুদ্ধিজীবীকে নির্মমভাবে হত্যা করে পাকিস্তানিরা।  মুক্তিযোদ্ধাদের পাশাপাশি সাধারণ মানুষের ওপর ৯ মাস ধরে চলে নির্মম আক্রমণ। পাকিস্তানের এই কর্মকাণ্ডে আমেরিকা ও চীন সমভাবে মদত দিয়েছে। বাঙালির কোল খালি করতে ব্যবহৃত হয়েছে মার্কিন ও চীনা সমরাস্ত্র। ভারত ও সোভিয়েত ইউনিয়ন বৈশ্বিক শতবিরোধিতার মধ্যেও মুক্তিযোদ্ধাদের সমর্থন ও সহযোগিতা জুগিয়েছে। রুশ সংবাদমাধ্যমেই বলা হয়েছে মুক্তিযুদ্ধ চলাকালে পূর্ব পাকিস্তানে ৩০ লাখ মানুষ প্রাণ হারিয়েছেন। ধর্ষিতার সংখ্যা চার লাখ। ২৫ মার্চের গণহত্যার বিষয়ে বহুদিন অন্ধকারে ছিলেন পশ্চিমা দুনিয়ার মানুষ। পাকিস্তানি সাংবাদিক অ্যান্থনি মাসকারেনহাসের একটি প্রতিবেদন সানডে টাইমস-এ প্রকাাশিত হতেই দুনিয়ার মানুষের কাছে ফুটে ওঠে ভয়ঙ্কর নৃশংসতার ছবি। বিবিসি-র সাংবাদিক মার্ক ডুম্মেটের মতে, এই প্রতিবেদনই বদলে দেয় ইতিহাসের গতিধারা। ১৯৭১ সালে ১৩ জুন প্রকাশিত লন্ডনের সানডে টাইমস-কে হাতিয়ার করে ভারতের তৎকালীন প্রধানমন্ত্রী ইন্দিরা গান্ধি বিশ্ব নেতৃত্বের সামনে তুলে ধরেন গণহত্যার বিবরণ। সানডে টাইমস-এ জেনোসাইড বা গণহত্যা নামেই প্রকাশিত হয়েছিল ঐতিহাসিক প্রতিবেদনটি। পাকিস্তানি নাগরিক হয়েও তিনি অবাধে পাক-সেনাদের হত্যাকাণ্ড দেখে নিজেকে সামলাতে পারেননি। ধ্বংসলীলার ছবি তুলে ধরেন পাশ্চাত্যের গণমাধ্যমে। আর সেই বিবরণকে হাতিয়ার করে ইন্দিরা গান্ধি বিশ্বনেতাদের কাছে ছুটে গিয়েছিলেন। কিন্তু সাবেক সোভিয়েত ইউনিয়ন ছাড়া কোনও বিশ্বনেতাই পাকিস্তানের বিরোধিতায় তেমন একটা আগ্রহ  দেখাননি। কয়েক বছর আগে ওয়াশিংটনের স্মিথোনিয়ান্মাগ-এ লরিন বইসোনাল্টের একটি গবেষণাধর্মী প্রতিবেদন প্রকাশিত হয়। সেখানে তিনি  ১৯৭১-এর ৬ এপ্রিল মার্কিন কূটনীতিক আর্চার ব্লাডের একটি মন্তব্যের উল্লেখ করেন। পাকিস্তানি বর্ববতার বিরুদ্ধে মার্কিনী নীরবতা প্রসঙ্গে তিনি  বলেছিলেন, ‘হত্যাকাণ্ড প্রতিরোধে আমরা ব্যর্থ। আমাদের সরকার (আমেরিকা) নৃশংসতার নিন্দা করতে ভুলে গিয়েছে। মার্কিন প্রশাসনের নৈতিক দৈন্যতায় অমি লজ্জিত।’ ফরাসি সাংবাদিক পল ড্রেফুস অবশ্য মনে করেন অপারেশন সার্চ লাইট ২৫ মার্চ হলেও পাকিস্তানি হিংসা চলছিল বহুকাল ধরেই। ৭ মার্চ বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ঐতিহাসিক ভাষণের পরই পাক-অত্যাচার বাড়তে থাকে।  বাড়তে থাকে হত্যার মাত্রাও। খোদ বঙ্গবন্ধু বলেছেন, ৩০ লাখ মানুষ প্রাণ হারিয়েছেন পাকিস্তানি বর্বরতায়। আলবদর ও রাজাকারদের সঙ্গে নিয়ে পাকিস্তানি জল্লাদেরা কতো মানুষ খুন করেছেন তার কোনও ইয়ত্তা নেই।  আবার নিহতের সংখ্যা নিয়েও রাজনীতি রয়েছে। বাংলাদেশের স্বাধীনতা বিরোধীরা আজও ৩০ লাখ শহিদকে অমর্যাদা করে চলেছে। অথচ রুশ সংবাদ মাধ্যম প্রভড়া-র প্রতিবেদনে উল্লেখ রয়েছে ৩০ লাখ নরহত্যার কথা। তদন্তকারী সাংবাদিক ডেভিড বার্গম্যান নিউ ইয়র্ক টাইমসের উত্তর সম্পাদকীয়তে একই তথ্য প্রকাশ করেন। হেরিটেজ ফাউন্ডেশনের এশিয়ান স্টাডিজ সেন্টারের গবেষক লিজা কার্টিস মনে করেন, গণহত্যায় নিহতদের সংখ্যা নিয়েও এখন রাজনীতি হচ্ছে। তাঁর সাফকথা, সংখ্যা যাইহোক না কেন, ৭১-এ বাঙালিদের ওপর ব্যাপক হত্যাকাণ্ড সংগঠিত হয়েছে। পাক-সেনারা অবাধে নিরীহ মানুষদের খুন করেছেন। শুধু কি খুন, অবাধে ধর্ষণ ও লুটপাটও চালায় পাক হানাদারেরা।  অন্তত ১ কোটি বাঙালি দেশ ছাড়া হতে বাধ্য হয়েছিলেন সেদিন। স্মিথোনিয়ান্মাগ-এর প্রতিবেদন অনুযায়ী, ধর্ষিতা মায়েদের গর্ভপাত করানোর জন্য অস্ট্রেলিয়ার চিকিৎসক জিওফ্রে ডেভিসকে ঢাকায় পাঠিয়েছিল জাতিসংঘ। লক্ষাধিক ধর্ষিতার গর্ভপাত করাতে হয়। ধর্ষিতার সংখ্যা পাঁচ লাখের কাছাকাছি। পাকিস্তানের এই বর্বরতা থামাতে বিন্দুমাত্র উদ্যোগী হয়নি আমেরিকা।  বরং মার্কিন প্রেসিডেন্ট রিচার্ড এম. নিক্সন ও একান্ত আস্থাভাজন হেনরি কিসিঞ্জার পাকিস্তানকে মদত দিয়েছে। বাংলাদেশের মুক্তিকামী-নিরীহ জনগণের সমর্থনের বদলে যুক্তরাষ্ট্র পাকিস্তানকে রাজনৈতিক ও বস্তুগত উভয়ভাবেই সহায়তা করেছে। মুক্তিযুদ্ধকে পাকিস্তানের অভ্যন্তরীণ বিষয় বলে ভারতের ভূমিকার বিরোধিতাও করেছে আমেরিকা। একই পথের পথিক ছিলো চীন। মুক্তিযোদ্ধাদের ভারতের সাহায্য করাটাকেও বিরোধিতা করেছে বেইজিং। পাকিস্তানকে মদতও দিয়েছে দেশটি। সে সময় পাকিস্তানের সৈন্যদের হাতে ছিলো চাইনিজ রাইফেল। এমনকি, বাংলাদেশের স্বাধীনতা অর্জনের পরও চীন বহুবছর পর স্বাধীনতার স্বীকৃতি দেয়। চীন ও আমেরিকা পাকিস্তানকে মদত দিলেও ভারতকে সমর্থন করে সোভিয়েত ইউনিয়ন। গণহত্যা প্রতিরোধে মুক্তিযোদ্ধাদের ভারতের সার্বিক সহযোগিতার কথা সকলেই জানেন। সেদিনের গণহত্যাকে প্রথম স্বীকৃতিও দিয়েছিল ভারত। কিন্তু আজও মেলেনি জাতিসংঘের স্বীকৃতি। গতবছর  বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা জাতিসংঘের উপ-মহাসচিব তথা গণহত্যা প্রতিরোধ বিষয়ক বিশেষ উপদেষ্টা আডামা ডিয়েং-এর সঙ্গে সৌজন্য সাক্ষাতে মিলিত হন। সেই সাক্ষাতের পর ডিয়েং বলেন, ১৯৭১ সালে বাংলাদেশে সংঘটিত হওয়া গণহত্যার বিষয়টি আন্তর্জাতিক সম্প্রদায়ের সামনে তুলে ধরবেন তিনি। একই সঙ্গে তিনি শুনিয়েছিলেন আশঙ্কার কথাও। তিনি বলেছিলেন, ‘কিছু দেশ এর বিরোধিতা করতে পারে। কিন্তু আমরা পাকিস্তানিদের দ্বারা বাংলাদেশের মুক্তিযুদ্ধের সময় চালানো গণহত্যার বিষয়টি আন্তর্জাতিক আদালতের সামনে উপস্থাপন করবো।’ জাতিসংঘ স্বীকৃতি না দিলেও আগেই উল্লেখ করা হয়েছে খোদ পাকিস্তানি সাংবাদিক গণহত্যার কথা পশ্চিমা দুনিয়ার নজরে আনেন প্রথম। এরপর বহু আন্তর্জাতিক গবেষক ও গবেষণাধর্মী প্রতিবেদনেও উঠে আসে ৭১-এর ভয়াবহ বর্বতার ছবি। জার্মানির হাইডেলব্যার্গ বিশ্ববিদ্যালয়ের দক্ষিণ এশিয়া ইন্সটিটিউটের অধ্যাপক ড. ভল্ফগাঙ পেটার সিঙ্গেল দৃঢ়তার সঙ্গে বলেন, তিনি নিশ্চিত, বাংলাদেশে গণহত্যা হয়েছে। তাঁর এ বিষয়ে কোনো সংশয় নেই। তবু বাংলাদেশ জাতিসংঘের স্বীকৃতি না পাওয়ায় তিনি বিস্ময় প্রকাশ করেন। তবে জাতিসংঘ এখনও স্বীকৃতি না দিলেও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে বাংলাদেশের জাতীয় সংসদ ২০১৭ সালে ২৫ মার্চকে গণহত্যা দিবস হিসাবে স্বীকৃতি দিয়েছে। এখন প্রতিবছরই দিনটি পালিত হয় গণহত্যা দিবস হিসাবে। বাংলাদেশের স্বাধীনতার এই আন্দোলনের আগে ও পরে সর্বদা চীন এবং যুক্তরাষ্ট্রের সমর্থন লাভ করেছে পাকিস্তান। এমনকি স্বাধীনতার ৫০ বছর পরও গণহত্যার স্বীকৃতি না পাওয়ার জন্য প্রচ্ছন্নভাবে দায়ী করা হচ্ছে দেশ দুটিকে। মুক্তিযুদ্ধকালে ক্ষমতার ব্যাল্যান্স রক্ষার খেলায় এই দুই দেশই বাংলাদেশের মাটিতে মানবতার চরম বিপর্যয় দেখেও পাকিস্তানকে মদত দিতে ভোলেনি। আজও সেই নীতির পরিবর্তন হয়নি। তাই গণহত্যার ৫০ বছর পার হয়ে এলেও জাতিসংঘ নীরব। বাংলার মাটিতে লাখ-লাখ মানুষের মৃত্যু মিছিল, নারীর সম্ভ্রমহানি, অবাধ লুট-ছিনতাই, অগ্নিসংযোগ এবং সেনাবাহিনীর চরম বর্বরতার অসংখ্য প্রমাণ থাকার পরও পাকিস্তানের বিরুদ্ধে জাতিসংঘের নীরবতা কষ্ট দেয় এ দেশের সন্তানহারা মায়েদের। পাক-প্রধানমন্ত্রী ইমরান খান ফোন করে এখন বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সঙ্গে  সৌজন্য দেখানোর চেষ্টা করছেন। অথচ, আজও সেই হত্যাকাণ্ডের জন্য ক্ষম চায়নি ইসলামাবাদ। বাংলাদেশের মানুষ সব জানে। সব জানেন জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু কন্যা শেখ হাসিনা। তাই যুদ্ধাপরাধীদের শাস্তি দিতে ভুল করেননি তিনি। গণহত্যাকারী ও তাঁদের মদতদাতাদের সঙ্গে বন্ধুত্ব করার ক্ষেত্রেও বাংলাদেশ আজও সতর্ক। কারণ স্বজনহারার কান্নায় সিক্ত বাংলাদেশের মাটি কখনই ভুলতে পারেনা পাকিস্তানের সামরিক জান্তাদের  সেই গণহত্যার দিনগুলো। লেখক : সিনিয়র সাংবাদিক

 

 

আরো খবর...