‘হায়েনা এক্সপ্রেস’ : নয়টি গানে একটি গল্প

বিনোদন বাজার ॥ অ্যালবাম প্রকাশের মধ্য দিয়ে পথচলা শুরু করতে যাচ্ছে ব্যান্ড ‘সোনার বাংলা সার্কাস’। শনিবার  প্রকাশ পেয়েছে তাদের প্রথম অ্যালবাম ‘হায়েনা এক্সপ্রেস’। মোট ৯টি গান নিয়ে সাজানো হয়েছে তাদের এই অ্যালবাম। গানগুলো হল ‘হায়েনা এক্সপ্রেস’, ‘মৃত্যু উৎপাদন কারখানা’, ‘অন্ধদেয়াল’, ‘সূর্যের অন্ধকার’, ‘আমার নাম অসুখ’, ‘ক্রমশ’, ‘পারফিউমের ফেলে দেয়া বোতল’, ‘আত্মহত্যার গান’, ও ‘এপিটাফ’। প্রকাশিত নয়টি গানে একটি গল্প বলতে চেয়েছে ব্যান্ডটি। জন্ম থেকে মৃত্যু পর্যন্ত কোনো এক মানুষের জীবনকে ধরতে চেয়েছে তাদের গানে।

গানগুলো প্রসঙ্গে ব্যান্ডের ভোকালিস্ট প্রবর রিপন বলেন, ‘একটা জার্নি রয়েছে পুরো অ্যালবামে। হায়েনা এক্সপ্রেসের মাধ্যমে কেউ একজন জন্ম নিয়ে পৃথিবীতে আসে। এসে সে হায়েনা এক্সপ্রেসে উঠে। ‘হায়েনা এক্সপ্রেস’ বলতে সময় বা মানুষের গতি এই জিনিসটাকে আমরা বুঝাতে চেয়েছি। যেমন আমরা জন্মগ্রহণ করি-তারপর পড়াশোনা করি, এক সময় আমরা দাসত্বমূলক কাজের ভিতর ঢুকি। সেভাবে মৃত্যু উৎপাদন কারখানায় সে ঢুকে। তারপর বুঝতে পারে যে আসলে এখানকার মানুষ না। তখন সে অন্ধ দেয়াল গানের মাধ্যমে ভেঙে বের হয়ে আসে। এসে সে মানব প্রেম বা যেকোনো প্রেমের দিকে যায়; তারপর সে আসলে টের পায়, যা অবস্থা এটাও ঠিক তার জন্য যাচ্ছে না। তার ভেতরে মজ্জাগত একটা অসুখ তাকে খোঁচা দেয় অনেক বেশি। সবকিছু যেমন স্বাভাবিক হওয়ার ছিল তেমনটা হয় না। তারপর পৃথিবীর সমস্তকিছু নিয়ে বিরক্ত শুরু হয় ‘ক্রমশ’ গান দিয়ে। এরপর সে জাহাজে চড়ে একটা দ্বীপে যায়, যে গানটা হল ‘পারফিউমের ফেলে দেয়া বোতল’। এভাবে ‘এপিটাফ’ দিয়ে সমস্ত ঘটনার শেষ হয়।’

‘মূলত অ্যালবামটি হল কনসেপ্টচুয়াল। পুরো একটা গল্প। অ্যালবামের গানগুলো একটানা শুনলে এই অভিজ্ঞতাটা পাওয়া যাবে’- যোগ করেন তিনি। গানগুলোর লিরিক এবং সুরও করেছেন প্রবর রিপন।

অ্যালবামটি তাদের নিজস্ব ইউটিউব চ্যানেলে প্রকাশিত হবে। পাশাপাশি অ্যালবামটির গ্লোবাল ডিস্ট্রিবিউশন করছে ‘অ্যানি রেকর্ড। এই অ্যালবামের প্রচ্ছদ এঁকেছেন সোহাগ হাবীব। ব্যান্ডের লোগো করেছেন জহির উদ্দিন জুম্মন।

ব্যান্ডের লাইনআপে আছেন প্রবর রিপন (ভোকাল ও অ্যাকুয়েস্টিক গিটার), শ্বেত পান্ডুরাঙ্গা ব্লুমবার্গ (লিড গিটার), শাকিল হক (বেজ গিটার ও ব্যাক ভোকাল), সাদ চৌধুরী (কিবোর্ড ও সিন্থ) এবং দেওয়ান আনামুল হাসান রাজু (ড্রামস)। উল্লেখ্য, ‘সোনার বাংলা সার্কাস’ যাত্রা শুরু করে ২০১৮ সালে।

আরো খবর...