‘হটলাইন কমান্ডো’ নিয়ে আসছেন সোহেল তাজ

ঢাকা অফিস ॥ সামাজিক বিভিন্ন সমস্যা তুলে ধরা এবং সুস্বাস্থ্যের প্রতি নজর দিতে মানুষকে সচেতন করতে একটি টেলিভিশন শো নিয়ে আসছেন সাবেক স্বরাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী তানজিম আহমেদ সোহেল তাজ। লাইফস্টাইল বিষয়ক এই রিয়্যালিটি শোর নাম ‘হটলাইন কমান্ডো’। গতকাল বৃহস্পতিবার রাজধানীর প্যান প্যাসিফিক সোনারগাঁও হোটেলে এক সংবাদ সম্মেলনে সোহেল তাজ এই শোর ঘোষণা দেন। সোহেল তাজ মানুষের জীবনযাপন, খাদ্যাভ্যাস ও সুস্থতা নিয়ে কথা বলেন। এ ছাড়া সামাজিক বিভিন্ন সমস্যা ও অসংগতি তুলে ধরেন। শারীরিক সুস্থতার পাশাপাশি সমাজের সুস্থতাও দরকার উল্লেখ করে সোহেল তাজ বলেন, ‘সুস্থ থাকা মানে শুধু স্বাস্থ্যই না; সমাজের সুস্থতাও দরকার। গণমাধ্যমে এখন ধর্ষণের খবর পাওয়া যাচ্ছে। ইভটিজিং রয়েছে, মাদক এগুলো সমাজের ব্যাধি। সমাজের সব ব্যাধিকে আমাদের লাল কার্ড দেখাতে হবে। সমাজের সমস্যাগুলোকে সমাধান করা না গেলে সোনার বাংলা গড়া যাবে না।’ চলতি বছরের ৩ এপ্রিল সোহেল তাজ তাঁর ভেরিফায়েড ফেসবুক পেজে একটি টিজার প্রকাশ করেন। সেখান দেখানো হয়, সোহেল তাজ মানুষের দরজায় গিয়ে টোকা দিচ্ছেন। গতকাল সংবাদ সম্মেলনে তিনি জানান, ‘হটলাইন কমান্ডো’ দল দেশের বিভিন্ন স্থানে নানার শ্রেণি- পেশার মানুষের দরজায় কড়া নাড়বে। ‘হটলাইন কমান্ডো’ আগামী সেপ্টেম্বর মাস থেকে আরটিভি দেখানো হবে। এই রিয়্যালিটি শো মাসে দুদিন করে, মঙ্গলবার রাত আটটায় হবে। ১২ পর্বের শোটি উপস্থাপনা করবেন সোহেল তাজ। বাংলাদেশের প্রথম প্রধানমন্ত্রী তাজউদ্দীন আহমদের ছেলে সোহেল তাজ। তিনি ২০০৮ সালের নির্বাচনের মাধ্যমে গঠিত আওয়ামী লীগ সরকারের সময় স্বরাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী ছিলেন। অবশ্য মেয়াদ শেষ হওয়ার আগেই তিনি পদত্যাগ করেন। পরে রাজনীতিতে আর সক্রিয় হননি। সংবাদ সম্মেলনে সোহেল তাজ তাঁর রাজনৈতিক অবস্থান নিয়ে নানান প্রশ্নের উত্তর দেন। ফের রাজনীতিতে যুক্ত হওয়ার কোনো সম্ভাবনা আছে কি নাÑ এ প্রশ্নের জবাবে সোহেল তাজ বলেন, ‘রাজনীতিতে আমি নাই। কিন্তু রাজনৈতিক পরিবারের সন্তান। রাজনীতি আমার রক্তে, দেশ আমার রক্তে। এটার বাইরে যাওয়ার সুযোগ নাই। এই মুহূর্তে সক্রিয়ভাবে রাজনীতি করার সুযোগ নাই। এই প্রোগ্রামটা আমার সমস্ত সময় নিয়ে নেবে। মানুষের কাছে আমি ঋণী। মানুষের ভালোবাসা পরিশোধ করতে যাচ্ছি এই প্রোগ্রামটার (হটলাইন কমান্ডো) মধ্য দিয়ে।’ প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ও আওয়ামী লীগ যদি সোহেল তাজকে কোনো রাজনৈতিক দায়িত্ব দেয়, তা তিনি গ্রহণ করবেন কি নাÑ জানতে চাইলে সোহেল তাজ বলেন, তিনি ও তাঁর পরিবার দেশের ও আওয়ামী লীগের দুঃসময়ে পাশে ছিল, থাকবে। আজকের সুদিনে থাকবেন কি না প্রশ্নের উত্তরে তিনি বলেন, ‘সুদিনে আমি অন্যভাবে সহায়তা করছি।’ সোহেল তাজ তাঁর টিভি শোর মাধ্যমে দুর্নীতি প্রতিরোধে কাজ করবেন কি নাÑ এমন প্রশ্নের জবাবে সাবেক এই স্বরাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী বলেন, ‘যেকোনো দেশ যদি উন্নতি করতে চায়, তার পথে সবচেয়ে বড় বাধা হচ্ছে দুর্নীতি। আমি শহীদ তাজউদ্দীন আহমদের সন্তান হিসেবে, বঙ্গবন্ধুর আদর্শের সৈনিক হিসেবে অবশ্যই চাই, বাংলাদেশ দুর্নীতিমুক্ত হবে। ব্যক্তিগতভাবে সে লক্ষ্যে আমি কাজ করে যাব। এই প্রোগ্রাম হচ্ছে সামাজিক বিষয়বস্তু নিয়ে, সোনার মানুষ তৈরি করা নিয়ে।’

আরো খবর...