স্বাবলম্বী হওয়ার জন্য নিজের ইচ্ছে শক্তিই  প্রধান

কুষ্টিয়ায় ‘আমার বাড়ি, আমার খামার প্রকল্প’ ও পল্লী সঞ্চয় ব্যাংকের উপকারভোগীদের সাথে মতবিনিময় সভায় আসলাম হোসেন

নিজ সংবাদ ॥ কুষ্টিয়ার জেলা প্রশাসক মো. আসলাম হোসেন বলেছেন- সন্তানকে লেখাপড়ার জন্য নারীকে স্বাবলম্বী হতে হবে। আর নারীকে স্বাবলম্বী হওয়ার জন্য নিজের ইচ্ছে শক্তিই  সবচেয়ে বড় বিষয়। গতকাল বুধবার সকালে কুষ্টিয়া সদর উপজেলা পরিষদ মিলনায়তনে ‘আমার বাড়ি, আমার খামার প্রকল্প’ ও পল্লী সঞ্চয় ব্যাংক এর উপকারভোগী সদস্যদের নিয়ে মতবিনিময় সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন।

অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (সার্বিক) লুৎফুন নাহারের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি ছিলেন সদর উপজেলা চেয়ারম্যান আতাউর রহমান, সদর উপজেলা নির্বাহী অফিসার জুবায়ের হোসেন চৌধুরী, বিআরডিবি কুষ্টিয়ার উপ-পরিচালক আবু আফজাল মোহাঃ সালেহ। স্বাগত বক্তব্য রাখেন তরুন কুমার রায়, বাদল জোয়ার্দার, নাছিমা বেগম।

অনুষ্ঠানে এই প্রকল্পের জেলা সমন্বয়কারী তানিয়া আফরিন প্রকল্পের বিভিন্ন তথ্য তুলে ধরেন। প্রধান অতিথির বক্তব্যে জেলা প্রশাসক বলেন- মহিলাদের আর্থিকভাবে লাভবান করে স্বাবলম্বী করে তোলার লক্ষে এই প্রকল্পটি চালু করা হয়েছে। সরকারের সদিচ্ছায় এই প্রকল্পটি দেশের বড় একটি অংশের মানুষ উপকৃত হচ্ছে। তিনি আরো বলেন, সন্তানদের শিক্ষিত করে তোলার পিছনে মায়েদের ভূমিকা অগ্রভাগে তাই মায়েদের অর্থনৈতিকভাবে স্বাবলম্বী হওয়ার ক্ষেত্রে এই প্রকল্পটি আলোকবর্তিতা হিসেবে কাজ করছে। জেলা প্রশাসক বলেন, কিছু করার জন্য মানুষের ইচ্ছে শক্তি প্রধান ভূমিকা রাখে। নিজের ইচ্ছে শক্তিকে প্রবল করে যে কোন কাজ করলে তা সফলতার দিকে ধাবিত হবেই। তিনি বলেন, মানষিক শক্তিকে কাজে লাগাতে হবে। ঋণের টাকা নিয়ে উৎপাদনশীল কোন কাজ করতে না পারলে আপনি ঠকবেন আবার অনেকে সর্বশান্ত হয়েছে তাই ভাল চিন্তা করে লেগে থাকলে ভাল ফলাফল আসবে। তিনি আরো বলেন, আপনারা এক একটি পরিবারকে একটি করে খামারে পরিনত করুন-নিজেরা কঠোর পরিশ্রমে আর্থিকভাবে লাভবান হলে দেশ উপকৃত হবে। প্রত্যেক মানুষকে স্বাবলম্বী  ও শিক্ষিত হতে হবে তবেই দেশ ২০৪১ সালে উন্নত দেশ হিসেবে পরিচিতি পাবে। পরে এই প্রকল্পের আওতায় ৫ জনকে ঋণের নগদ টাকা বিতরণ করা হয়। অনুষ্ঠানে পরিচালনা করেন প্রকল্পের কুমারখালী উপজেলা সমন্বয়কারী সেলিম আহমেদ।

আরো খবর...