সর্বোচ্চ শনাক্তের রেকর্ডের দিনে আক্রান্তের সংখ্যা দেড় লাখ ছাড়াল

ঢাকা অফিস ॥ দেশে করোনাভাইরাসের (কোভিড-১৯) সংক্রমণ এবং এতে মৃত্যু বাড়ছে উদ্বেগজনক হারে। গত ২৪ ঘণ্টায় আরও চার হাজার ১৯ জনের শরীরে ভাইরাসটির উপস্থিতি শনাক্ত হয়েছে, যা একদিনে সর্বোচ্চ শনাক্তের রেকর্ড। ফলে শনাক্ত রোগীর সংখ্যা দাঁড়িয়েছে এক লাখ ৫৩ হাজার ২৭৭ জনে। আক্রান্তদের মধ্যে গত ২৪ ঘণ্টায় মারা গেছেন আরও ৩৮ জন। এ নিয়ে মোট মৃত্যু হলো এক হাজার ৯২৬ জনের। গতকাল বৃহস্পতিবার দুপুরে স্বাস্থ্য অধিদফতরের করোনাভাইরাস বিষয়ক নিয়মিত হেলথ বুলেটিনে এ তথ্য জানান অধিদফতরের অতিরিক্ত মহাপরিচালক অধ্যাপক ডা. নাসিমা সুলতানা। তিনি নতুন একটিসহ মোট ৭০টি ল্যাবরেটরিতে নমুনা পরীক্ষার তথ্য তুলে ধরে বলেন, করোনাভাইরাস শনাক্তে গত ২৪ ঘণ্টায় আরও ১৭ হাজার ৯৪৭টি নমুনা সংগ্রহ করা হয়। পরীক্ষা করা হয় আগের কিছু মিলিয়ে ১৮ হাজার ৩৬২টি। এ নিয়ে দেশে মোট নমুনা পরীক্ষা করা হলো আট লাখ দুই হাজার ৬৫৭টি। নতুন নমুনা পরীক্ষায় করোনা শনাক্ত হয়েছে আরও চার হাজার ১৯ জনের মধ্যে। ফলে শনাক্ত করোনা রোগীর সংখ্যা দাঁড়াল এক লাখ ৫৩ হাজার ২৭৭ জনে। আক্রান্তদের মধ্যে মারা গেছেন আরও ৩৮ জন। এ নিয়ে মোট মৃত্যু হয়েছে এক হাজার ৯২৬ জনের। এ ছাড়া গত ২৪ ঘণ্টায় সুস্থ হয়েছেন আরও চার হাজার ৩৩২ জন। এতে মোট সুস্থ রোগীর সংখ্যা দাঁড়াল ৬৬ হাজার ৪৪০ জনে। গত ২৪ ঘণ্টায় যে ৩৮ জন মারা গেছেন তাদের মধ্যে পুরুষ ৩২ এবং নারী ছয়জন। এদের মধ্যে ২১ থেকে ৩০ বছরের একজন, ত্রিশোর্ধ্ব দুজন, চশ্লিশোর্ধ্ব দুজন, পঞ্চাশোর্ধ্ব ১৬ জন, ষাটোর্ধ্ব আটজন, সত্তরোর্ধ্ব সাতজন, ৮০ বছরের বেশি বয়সী দুজন। তাদের ১১ জন ঢাকা বিভাগের, ১২ জন চট্টগ্রাম বিভাগের, পাঁচজন রাজশাহী বিভাগের, পাঁচজন খুলনা বিভাগের, একজন রংপুর বিভাগের, দুজন সিলেট বিভাগের এবং দুজন বরিশাল বিভাগের। ৩৩ জন মারা গেছেন হাসপাতালে এবং পাঁচজনের মৃত্যু হয়েছে বাসায়। গত বুধবারের বুলেটিনে জানানো হয়, গত ২৪ ঘণ্টায় করোনা রোগীদের মধ্যে আরও ৪১ জনের মৃত্যু হয়েছে। ১৭ হাজার ৮৭৫টি নমুনা পরীক্ষায় করোনা শনাক্ত হয়েছে আরও তিন হাজার ৭৭৫ জনের দেহে। সে হিসাবে আগের ২৪ ঘণ্টার তুলনায় গত ২৪ ঘণ্টায় মৃত্যু কমলেও শনাক্তে হয়েছে সর্বোচ্চ রেকর্ড। এর আগে দেশে একদিনে সর্বোচ্চ শনাক্তের রেকর্ড ছিল চার হাজার ১৪ জনের। সে তথ্য জানানো হয় গত ২৯ জুনের বুলেটিনে। দেশে সর্বোচ্চ মৃত্যুর রেকর্ড আছে ৬৪ জনের। সে তথ্য জানানো হয় ৩০ জুনের বুলেটিনে। বৃহস্পতিবারের বুলেটিনে বলা হয়, গত ২৪ ঘণ্টায় নমুনা পরীক্ষার তুলনায় রোগী শনাক্তের হার ২১ দশমিক ৮৯ শতাংশ। এখন পর্যন্ত রোগী শনাক্ত বিবেচনায় সুস্থতার হার ৪৩ দশমিক ৩৫ এবং মৃত্যুর হার ১ দশমিক ২৬ শতাংশ। বুলেটিনে জানানো হয়, গত ২৪ ঘণ্টায় আইসোলেশনে নেয়া হয়েছে আরও ৯৬০ জনকে এবং এ পর্যন্ত আইসোলেশনে নেয়া হয়েছে ২৮ হাজার ৫০২ জনকে। গত ২৪ ঘণ্টায় আইসোলেশন থেকে ছাড় পেয়েছেন ৭৭৫ জন এবং এ পর্যন্ত ছাড় পেয়েছেন ১২ হাজার ৭৭৫ জন। বর্তমানে আইসোলেশনে রয়েছেন ১৫ হাজার ৭৫৭ জন। গত ২৪ ঘণ্টায় হোম ও প্রাতিষ্ঠানিক মিলিয়ে কোয়ারেন্টাইনে নেয়া হয়েছে দুই হাজার ৮৯৪ জনকে, এ পর্যন্ত কোয়ারেন্টাইনে নেয়া হয়েছে তিন লাখ ৬৯ হাজার ১৮৯ জনকে। গত ২৪ ঘণ্টায় কোয়ারেন্টাইন থেকে ছাড় পেয়েছেন তিন হাজার ১৬৮ জন, এ পর্যন্ত কোয়ারেন্টাইন থেকে মোট ছাড় পেয়েছেন তিন লাখ পাঁচ হাজার ৫৮১ জন। বর্তমানে হোম ও প্রাতিষ্ঠানিক মিলিয়ে কোয়ারেন্টাইনে রয়েছেন ৬৩ হাজার ৬০৮ জন। ডা. নাসিমা সুলতানা বলেন, কোনো ব্যক্তির করোনাভাইরাসের উপসর্গ দেখা দিলে ১৪ দিন আইসোলেশনে থাকতে হবে। আর করোনার উপসর্গ চলে গেলে আরও ১৪ দিন কোয়ান্টাইনে থেকে কাজে ফেরা যাবে। তিনি বলেন, সুস্থ হওয়ার পর অনেকের কাজে ফিরতে অসুবিধা হচ্ছে। এ ক্ষেত্রে যে কেউ করোনা আক্রান্ত হলে অবশ্যই ১৪ দিন আইসোলেশনে থাকবেন। উপসর্গমুক্ত হলে তিনি আরও ১৪ দিন কোয়ারেন্টাইনে থেকে কাজে ফিরবেন। যদিও বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা এই সময়টিকে ১০ দিন বলেছে। তবুও অতিরিক্ত সতর্কতা বিবেচনায় আমরা লক্ষণ, উপসর্গমুক্ত হওয়ার পরও ১৪ দিন কোয়ারেন্টাইন থাকার জন্য বলছি। নাসিমা সুলতানা আরও বলেন, যারা নিয়োগকারী আছেন, তারা এই বিষয়টি বিবেচনায় নিয়ে তাদের কর্মকর্তা-কর্মচারী যারা আছেন, তাদেরকে কাজে ফিরতে সহায়তা করবেন। এ ক্ষেত্রে আর কোনো পরীক্ষার দরকার হবে না। ডা. নাসিমা সুলতানা জানান, করোনা শনাক্তে বেসরকারি পর্যায়ে আরও একটি পরীক্ষাগার যুক্ত হয়েছে। ইউনিভার্সেল মেডিকেল কলেজ অ্যান্ড হাসপাতালে পরীক্ষাগারটি স্থাপন করা হয়েছে। এ নিয়ে করোনা পরীক্ষায় মোট পিসিআর পরীক্ষাগারের সংখ্যা দাঁড়াল ৭০টিতে। তিনি বলেন, স্বাস্থ্য অধিদফতর তথা স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের পরীক্ষা করার সক্ষমতা বৃদ্ধি পেয়েছে প্রত্যেক মাসে। মার্চ মাসে করোনার নমুনা পরীক্ষা হয়েছিল তিন হাজার ৬৫টি, এপ্রিলে ৬২ হাজার ৮২৬টি, মে’তে দুই লাখ ৪৩ হাজার ৩৯টি এবং জুনে চার লাখ ৫৭ হাজার ৫৩০টি। জুন পর্যন্ত সব মিলে সাত লাখ ৬৬ হাজার ৪৬০টি নমুনা পরীক্ষা হয়েছে। ১ ও ২ জুলাইসহ এ পর্যন্ত আট লাখ দুই হাজার ৬৯৭টি নমুনা পরীক্ষা হয়েছে। সরকারি ও বেসরকারি পর্যায়ে ক্রমান্বয়ে আমরা নমুনা পরীক্ষার সক্ষমতা বাড়িয়ে চলছি। বুলেটিনে বরাবরের মতো করোনাভাইরাস থেকে সুরক্ষিত থাকতে স্বাস্থ্যবিধি প্রতিপালনসহ প্রয়োজনীয় পরামর্শ দেশবাসীর উদ্দেশে তুলে ধরা হয়। চীনের উহান শহর থেকে গত ডিসেম্বরে ছড়ানো করোনাভাইরাসের ছোবলে গোটা বিশ্ব মৃত্যুপুরীতে পরিণত হয়েছে। বিশ্বজুড়ে এ ভাইরাসে আক্রান্তের সংখ্যা এক কোটি আট লাখ ছাড়িয়ে গেছে। মৃতের সংখ্যা পাঁচ লাখ ১৯ হাজারের বেশি। তবে ৬০ লাখ ৪০ হাজারের বেশি রোগী ইতোমধ্যে সুস্থ হয়েছেন। বাংলাদেশে করোনাভাইরাস প্রথম শনাক্ত হয় গত ৮ মার্চ। প্রথম মৃত্যু হয় ১৮ মার্চ।

আরো খবর...