সততার পরিচয়…

সাহাজুল সাজু ॥ প্রবাদ আছে যে, টাকা দেখলে কাঁঠের পুতুলও হাঁসে করে। কিন্তু অন্যের ব্যক্তির হারানো প্রায় ২ লক্ষ টাকা পেয়েও এ প্রবাদের ভিন্নতা দেখিয়ে সততার পরিচয় দিলেন এক কাউন্টার মাস্টার। জানা যায়, মেহেরপুর সদর উপজেলার উত্তর শালিকা গ্রামের মৃত ইয়ার আলীর ছেলে হায়দার আলী (৫২) ও কুলবাড়িয়া গ্রামের হারেজ আলীর ছেলে হাবিবুর রহমান (৫০) চট্টগ্রামে তাদের সবজি বিক্রি শেষে গত সোমবার সন্ধ্যা ৭টার দিকে হানিফ এন্টার প্রাইজ নামক দূরপাল্লার বাসে গাংনী উপজেলা শহরের উদ্দেশ্যে রওনা হন। বাসটি গতকাল মঙ্গলবার সকালে কুষ্টিয়া শহরের হানিফ কাউন্টারে পৌঁছায়। এ সময় হায়দার ও হাবিবুর সবজি বিক্রয়ের ১লক্ষ ৮৪ হাজার টাকা একটি ব্যাগে করে বাসের ছিটে রেখে ল্যাট্রিনে যান। তারা ল্যাট্রিন থেকে ফেরার আগেই বাসটি গাংনী কাউন্টারের উদ্দেশে রওনা হয়। বাসটি ঘণ্টাখানেক পর গাংনী কাউন্টারে পৌঁছায়। বাসটির সুপারভাইজার লক্ষ্য করেন যে, বাসের ছিটে মানুষ না থাকলেও ২টি ব্যাগ রাখা আছে। এ সময় সুপারভাইজার ব্যাগ দুটো কাউন্টার মাস্টার মোকাদ্দেস আলীর কাছে দেন। কাউন্টার মাস্টার কৌতুহলবশত ব্যাগ দুটো খুলে দেখে যে, ওই ব্যাগে টাকা ভর্তি রয়েছে। এদিকে সবজি ব্যবসায়ী হায়দার ও হাবিবুর তাদের হারানো টাকা খুঁজতে গাংনী হানিফ কাউন্টারে আসেন। এ সময় কাউন্টার মাস্টার তাদের হারানো টাকা পেয়েছেন বলে স্বীকার করেন। এবং প্রমাণ সাপেক্ষে গাংনী বাজার কমিটির সভাপতি মাহবুবুর রহমান স্বপনের মাধ্যমে দু’জনের ১ লক্ষ ৮৪ হাজার টাকা ফেরত দিয়ে সততার পরিচয় দিলেন।

আরো খবর...