লকডাউন প্রত্যাহারের পর করোনার কেন্দ্র হুবেইয়ে সংঘর্ষ

ঢাকা অফিস ॥ করোনা ভাইরাসের কেন্দ্রস্থল চীনের হুবেই প্রদেশে সংঘর্ষের ঘটনা ঘটেছে। শুক্রবার সকালের দিকে হুবেই’র প্রতিবেশী প্রদেশ জিয়াংজিংয়ের মধ্যে সংযোগকারী একটি সেতু চালু করার সময় সংঘর্ষে জড়িয়ে পড়েন স্থানীয়রা। দ্যা গ্লোব অ্যান্ড মেইলের বরাত দিয়ে বেইজিং নিউজ বলছে, মহামারি করোনা ভাইরাসের কারণে দেওয়া লকডাউন শিথিল করার কয়েক দিন পর এ সংঘর্ষের ঘটনা ঘটলো। স্থানীয় সংবাদমাধ্যম জানিয়েছে, জিয়াংজিং কর্তৃপক্ষ হুবেইয়ের লোকদের প্রবেশ নিষিদ্ধ করার পর এই সংঘর্ষের ঘটনা ঘটে। করোনা ভাইরাসের প্রাদুর্ভাব মোকাবেলায় হুবেই লকডাউন করা হয়েছিলো। কয়েক দিন আগে তা শিথিল করা হয়। চীনা সোশ্যাল মিডিয়ায় পোস্ট করা বেশ কয়েকটি ভিডিওর বরাত দিয়ে সংবাদমাধ্যমটি জানিয়েছে, ঘটনাস্থলে পুলিশের সঙ্গে সংঘর্ষে জড়িয়ে পড়ে জনতা। এ সময় তারা পুলিশের গাড়ি ভাঙচুর ও গাড়ি উল্টে দেয়। সীমান্তে তল্লাশি চৌকি বসানোর অভিযোগে জিয়াংজিংর পুলিশকে ক্ষমা চাওয়ার দাবি জানান হুবেইয়ের বাসিন্দারা। ভিডিওগুলিতে দেখা যায়, ইউনিফর্ম পরা কর্মীরা ইয়াংজি নদীর ওপারে জিয়াংজিং প্রদেশের চলাচল রাস্তা বন্ধ করে দিচ্ছে। উত্তেজিত জনতাকে শান্ত করতে হ্যান্ড মাইক হাতে ঘটনাস্থলে দেখা যায় হুবেই প্রদেশের কমিউনিস্ট পার্টির শীর্ষ কর্মকর্তা ম্যা ইয়াংঝুকে। তিনি জনতাকে বলছিলেন, ‘আপনাদের এই সেতুতে জড়ো হওয়া বিপজ্জনক হবে।’ শনিবার উভয় প্রদেশের কর্তৃপক্ষ একটি যৌথ বিবৃতি প্রকাশ করেছে। এতে বলা হয়েছে, দুই প্রদেশের মাঝে সংযোগস্থাপনকারী সেতুটির প্রবেশ মুখের তল্লাশি চৌকি প্রত্যাহার করে নেওয়া হবে। চীনের রাষ্ট্রীয় মালিকানাধীন দৈনিক পিপলস ডেইলি বলেছে, হুবেইয়ের বাসিন্দারা মহামারির বিরুদ্ধে যুদ্ধে জয়ের জন্য দুর্দান্ত প্রচেষ্টা এবং উল্লেখযোগ্য অবদান রেখেছে। করোনা ভাইরাসের প্রাদুর্ভাব শুরু হলে হুবেই প্রদেশকে পুরোপুরি বিচ্ছিন্ন করে দেওয়া হয়। দুই মাসের সময়ের বেশি বিচ্ছিন্নতার পর স্বাভাবিক হতে শুরু করে হুবেই। গত বছরের ডিসেম্বরে চীনের হুবেই প্রদেশের উহান শহর থেকে করোনা ভাইরাসের উৎপত্তি হয়। এ ভাইরাসে বিশ্বজুড়ে এখন পর্যন্ত মারা গেছে ২৭ হাজার ৩৬০ জন।

 

আরো খবর...