রাষ্ট্রীয় মর্যাদায় সমাহিত অধ্যাপক মোজাফফর

ঢাকা অফিস ॥ উপমহাদেশে বাম রাজনীতির অন্যতম পুরোধা, মুক্তিযুদ্ধকালীন বাংলাদেশ সরকারের উপদেষ্টা পরিষদের সদস্য ও ন্যাশনাল আওয়ামী পার্টির (ন্যাপ) সভাপতি অধ্যাপক মোজাফফর আহমদকে রাষ্ট্রীয় মর্যাদায় সমাহিত করা হয়েছে। গতকাল রোববার বাদ জোহর কুমিল্লার দেবিদ্বারের এলাহাবাদে চেতনায় মুক্তিযুদ্ধ বাংলাদেশের কার্যালয়ের মাঠে চতুর্থ জানাজা শেষে হাজার হাজার মানুষের ভালোবাসায় সিক্ত হন অধ্যাপক মোজাফফর আহমদ। পরে তাকে সেখানে সমাহিত করা হয়। গত শুক্রবার সন্ধ্যায় রাজধানীর অ্যাপোলো হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মারা যান অধ্যাপক মোজাফফর আহমদ। তার বয়স হয়েছিল ৯৮ বছর। এর আগে শনিবার কেন্দ্রীয় শহীদ মিনারে দেশবাসীর শ্রদ্ধা ও ভালোবাসায় সিক্ত হন দেশবরেণ্য প্রয়াত রাজনীতিবিদ অধ্যাপক মোজাফফর আহমদ। শনিবার দুপুরে মোজাফফর আহমদের প্রতি শেষ শ্রদ্ধা জানান সর্বস্তরের মানুষ। এর আগে কুঁড়েঘর প্রতীক খ্যাত মোজাফফর আহমদের প্রথম জানাজা জাতীয় সংসদ ভবনের দক্ষিণ প্লাজায় অনুষ্ঠিত হয়। জানাজা শেষে মুক্তিযুদ্ধের সংগঠক মোজাফফর আহমদকে গার্ড অব অনার ও রাষ্ট্রীয় সালাম প্রদান করা হয়। এ সময় এক মিনিট নীরবতা পালন করা হয়। জানাজা শেষে রাষ্ট্রপতি মো. আবদুল হামিদের পক্ষে তার সহকারী সামরিক সচিব, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা এবং স্পিকার ড. শিরীন শারমিন চৌধুরী শ্রদ্ধা নিবেদন করেন। পরে শেখ হাসিনা আওয়ামী লীগের সভাপতি হিসেবে দলীয় নেতাকর্মীদের সঙ্গে নিয়ে শ্রদ্ধা জানান। এরপর বিভিন্ন রাজনৈতিক, সামাজিক ও সাংস্কৃতিক সংগঠনের নেতাকর্মীরা শ্রদ্ধা জানান। দুপুরে শহীদ মিনারে নেয়ার আগে ধানমন্ডিতে পার্টি অফিসের সামনে শ্রদ্ধা জানানো হয়। শনিবার বাদ আসর বায়তুল মোকাররম জাতীয় মসজিদে দ্বিতীয় জানাজা শেষে তার লাশ কুমিল্লার দেবিদ্বারের এলাহাবাদে গ্রামের বাড়িতে নিয়ে আসা হয়। রোববার সকাল ১০টায় কুমিল্লা টাউন হল মাঠে মোজাফফর আহমদের তৃতীয় জানাজা এবং মরহুমের প্রতি শ্রদ্ধা নিবেদন করেন কুমিল্লাবাসী। সর্বশেষ মরহুমের গ্রামের বাড়ি জেলার দেবিদ্বার উপজেলার এলাহাবাদে চেতনায় মুক্তিযুদ্ধ বাংলাদেশের কার্যালয়ের মাঠে চতুর্থ জানাজা সম্পন্ন হয়। জানাজা শেষে মোজাফফর আহমদকে গার্ড অব অনার ও রাষ্ট্রীয় সালাম প্রধান করেন কুমিল্লা জেলা প্রশাসক মো. আবুল ফজল মীর, পুলিশ সুপার  সৈয়দ নুরুল ইসলাম বিপিএম (বার) পিপিএম ও দেবিদ্বার উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা রবীন্দ্র চাকমা। জানাজার পূর্বে স্মৃতিচারণমূলক বক্তব্য রাখেন বাংলাদেশ কৃষক শ্রমিক জনতা লীগের সভাপতি বঙ্গবীর কাদের সিদ্দিকী, কুমিল্লা-৪ দেবিদ্বার আসনের সংসদ সদস্য রাজী মোহাম্মদ ফখরুল, সাবেক রাষ্ট্রদূত মো. আবদুল হান্নান, বাংলাদেশের কমিউনিস্ট পার্টির প্রেসিডিয়াম সদস্য আবদুল্লাহ আল কাফি রতন, ন্যাপের কেন্দ্রীয় প্রেসিডিয়াম সদস্য মোহাম্মদ আলী ফারুক, জাতীয় পার্টির কেন্দ্রীয় ভাইস- চেয়ারম্যান অধ্যাপক ইকবাল হোসেন রাজু, কুমিল্লা উত্তর জেলা আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি অধ্যক্ষ এম হুমায়ুন মাহমুদ প্রমুখ। অধ্যাপক মোজাফফর আহমদ ১৯২২ সালের ১৪ এপ্রিল কুমিল্লা জেলার দেবিদ্বার উপজেলার এলাহাবাদ গ্রামের সম্ভ্রান্ত ভূইয়া পরিবারে জন্মগ্রহণ করেন। তার বাবা স্কুল শিক্ষক কেয়াম উদ্দিন ভূইয়া ও মা আফজারুন্নেছা। তিনি দেবিদ্বার উপজেলার হোসেনতলা প্রাথমিক বিদ্যালয় থেকে পঞ্চম শ্রেণি, দেবিদ্বার রেয়াজউদ্দিন পাইলট উচ্চবিদ্যালয় থেকে ১৯৩৯ সালে এসএসসি ও কুমিল্লা ভিক্টোরিয়া কলেজ থেকে এইচএসসি, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় থেকে অর্থনীতিতে স্নাতক ও স্নাতকোত্তর ডিগ্রি এবং ইউনেস্কোর ডিপ্লোমা লাভ করেন। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের অর্থনীতি বিভাগে অধ্যাপনা ছাড়াও বিভিন্ন কলেজে শিক্ষকতা করেন মোজাফফর। বর্ণাঢ্য রাজনৈতিক জীবনের অধিকারী প্রবীণ বাম নেতা অধ্যাপক মোজাফফর আহমদ বার্ধ্যক্যের কারণে সক্রিয় রাজনীতি থেকে অনেকটাই অবসরে ছিলেন। বার্ধক্যজনিত নানা শারীরিক সমস্যা বাসা বেঁধেছিল তার দেহে। অনেকটাই চলৎশক্তিহীন অবস্থায় বারিধারার পার্ক রোডের মেয়ের বাড়িতে স্ত্রী ও কন্যার পরিচর্চায় ছিলেন তিনি।

আরো খবর...